× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Youth died while laying power lines in badminton court
hear-news
player
google_news print-icon

ব্যাডমিন্টন কোর্টে বিদ্যুতের লাইন দিতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু

ব্যাডমিন্টন-কোর্টে-বিদ্যুতের-লাইন-দিতে-গিয়ে-যুবকের-মৃত্যু
প্রতীকী ছবি
শামীম নিয়মিত ব্যাডমিন্টন খেলতেন। শনিবার সন্ধ্যায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হওয়ার পর তাকে ফেনী জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান।

ফেনী সদরে ব্যাডমিন্টনের কোর্টে বিদ্যুতের লাইন দিতে গিয়ে আবু বক্কর শামীম নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।

উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নের পিঠাপাশারীতে শনিবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

২২ বছর বয়সী শামীমের বাড়ি ফেনী পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডে।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, শামীম নিয়মিত ব্যাডমিন্টন খেলতেন। শনিবার সন্ধ্যায় ব্যাডমিন্টন কোর্টে তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। পরে স্থানীয়রা ফেনী জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান।

শামীমের বাবা ফজলুল হক বলেন, ‘শামীম আমার একমাত্র ছেলে। সে প্রায়ই ব্যাডমিন্টন খেলতে যেত।

‘আজ ট্রাংক রোডে কাজে ব্যস্ত ছিলাম। সন্ধ্যা ৭টার দিকে ফোন আসে শামীম মারা গেছে।’

ফেনী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন জানান, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যুর সংবাদ পাওয়ার পরপরই ফেনী মডেল থানা পুলিশ হাসপাতালে পৌঁছে সুরতহাল করে। পরে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের (এডিএম) নির্দেশে ময়নাতদন্ত না করে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আরও পড়ুন:
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ঘরেই দুই বোনের মৃত্যু
ইন্টারনেটের তার টানাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু
ফ্রিজ খোলার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দোকান কর্মচারীর মৃত্যু
বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ভবন থেকে পড়ে রাজমিস্ত্রির মৃত্যু
পাকা ঘরে থাকা হলো না, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে গেল ৩ প্রাণ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Remembrance of the Rajbari womens group released after 4 months

৪ মাস পর কারামুক্ত রাজবাড়ী মহিলা দলের স্মৃতি

৪ মাস পর কারামুক্ত রাজবাড়ী মহিলা দলের স্মৃতি জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর বিএনপি নেতা-কর্মীদের ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হন সোনিয়া আক্তার স্মৃতি। ছবি: নিউজবাংলা
মুক্তির পর স্মৃতি বলেন, ‘আমি সঠিক কথাই লিখেছিলাম। সত্যি কথা বলার অপরাধে চার মাস মাসুম দুটি বাচ্চা রেখে আমাকে জেল খাটতে হয়েছে। এতে আমার কোনো আফসোস নেই। কারণ আমি জানি পুরো বাংলাদেশের মানুষ আমার পাশে ছিল। আর আমার দলের জন্য চার মাস কেন, চার বছরও জেল খাটতে পারি।’

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটূক্তি ও ফুচকা উৎসবের নামে ‘অশ্লীল নৃত্য’ আয়োজনের অভিযোগে করা আলাদা দুটি মামলায় প্রায় চার মাস কারাগারে থাকা রাজবাড়ীর মহিলা দলের নেত্রী সোনিয়া আক্তার স্মৃতি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন।

রাজবাড়ী জেলা কারাগার থেকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মুক্তি পান তিনি।

মুক্তির পর স্মৃতি বলেন, ‘আমি সঠিক কথাই লিখেছিলাম। সত্যি কথা বলার অপরাধে চার মাস মাসুম দুটি বাচ্চা রেখে আমাকে জেল খাটতে হয়েছে। এতে আমার কোনো আফসোস নেই।

‘কারণ আমি জানি পুরো বাংলাদেশের মানুষ আমার পাশে ছিল। আর আমার দলের জন্য চার মাস কেন, চার বছরও জেল খাটতে পারি।’

স্মৃতি আরও বলেন, ‘একজন সমাজকর্মী হিসেবে মানুষের জন্য কাজ করি। রাত-বিরাতে মুমূর্ষু রোগীর জন্য বের হই; তাদের রক্ত জোগাড় করে দিই। এ জন্য অনেক খারাপ কথা শুনতে হয়েছে, কিন্তু যাদের উপকার হয়েছে, তাঁরা খুশি হয়েছেন।’

স্মৃতি রাজবাড়ী ব্লাড ডোনার্সের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। তিনি জেলা মহিলা দলের সদস্য। দুই সন্তানের এ জননী শহরের বেড়াডাঙ্গা এলাকায় থাকেন।

স্মৃতির ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ‘আপত্তিকর’ পোস্টের বিষয়ে রাজবাড়ী সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দেন সামসুল আরেফিন চৌধুরী নামের আওয়ামী লীগের স্থানীয় এক নেতা। পরে অভিযোগটি মামলা হিসেবে ৫ অক্টোবর রেকর্ড করা হয়। ওই দিনই স্মৃতিকে গ্রেপ্তার করা হয়।

অভিযোগ অনুযায়ী, গত বছরের ৩১ আগস্ট স্মৃতি তার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একটি স্ট্যাটাস দেন, যাতে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বক্তব্যের সমালোচনা করে ‘আপত্তিকর’ কথা লেখেন। অনেকে পোস্টটি দেখায় প্রধানমন্ত্রীর সুনাম ক্ষুণ্ন ও মানহানি হয়।

মামলায় রাজবাড়ী জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিন চেয়ে বিফল হন স্মৃতি। এরপর ৩০ অক্টোবর হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন। এর শুনানি নিয়ে ৩১ অক্টোবর তাকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেয় হাইকোর্ট। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করলে ২ নভেম্বর তার জামিন স্থগিত করে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত।

চেম্বার আদালত বিষয়টি আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠায়। এর ধারাবাহিকতায় ২৮ নভেম্বর আপিল বিভাগে শুনানি হয়। পরে ১৫ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ স্মৃতিকে ছয় মাসের জামিন দেয়।

স্মৃতির বাবা আবদুস সাত্তার মল্লিক বলেন, ‘বাংলাদেশে জামিন হয়, কিন্তু মুক্তি মেলে না। আমার বাচ্চা আমার কাছে ফিরে এসেছে। আমার বুকের মানিক। আমার খুব ভালো লাগছে।’

রাজবাড়ী জেলা বারের আইনজীবী ও স্মৃতির মনোনীত আইনজীবী নেকবর হোসেন মনি জানান, বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তির মামলা ও ফেসবুক গ্রুপ ‘খাদক বাঙ্গালী’র আয়োজনে রাজবাড়ী শিশু পার্কে অশ্লীল নৃত্য আয়োজন করার অভিযোগে মামলায় জামিন পান স্মৃতি। সন্ধ্যায় জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন তিনি।

সোনিয়া আক্তার স্মৃতি জামিন পেলে তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান বিএনপির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা।

আরও পড়ুন:
রাজবাড়ীর মহিলা দলের সেই স্মৃতির জামিন বহাল
স্মৃতিসৌধের আশপাশের বাসিন্দাদের তথ্য নিচ্ছে পুলিশ
আপাতত জামিন পাচ্ছেন না সেই স্মৃতি
শিশুর স্মৃতিশক্তি বাড়াবে যে খাবারগুলো
স্মৃতিসৌধে গাছ পড়ে দর্শনার্থীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
He went on a trip to Marine Drive and returned as a dead body

মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে গিয়ে ফিরলেন লাশ হয়ে

মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে গিয়ে ফিরলেন লাশ হয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন মামুনুর রশীদ। ছবি: নিউজবাংলা
কক্সবাজার সদর হাসপাতালের নিরাপত্তা পুলিশ সদস্য মো. রিপন চৌধুরী বলেন, ‘রাত সাড়ে ৯টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দুইজনকে আনা হয়। এ সময় হাসপাতালের চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপরজন শহরে ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

কক্সবাজারে উখিয়ার মেরিন ড্রাইভ সড়কে মোটরসাইকেলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে এক যুবক মারা গেছেন। এতে আহত হয়েছেন আরও একজন।

উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের পাটুয়ারটেক এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

২৬ বছর বয়সী মামুনুর রশীদ কক্সবাজার পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের রুমালিয়ারছড়া সবুজবাগ এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। আহত যুবকের নাম ও পরিচয় জানাতে না পারলেও পুলিশ জানায় তিনি নিহত মামুনুরের বন্ধু।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি বলেন, ‘বিকেলে মামুনুর তার এক বন্ধু সঙ্গে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে টেকনাফে বেড়াতে গিয়েছিল। রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের উখিয়া উপজেলার পাটুয়ারটেক এলাকায় পৌঁছালে গাড়ি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে যায়। এ সময় সড়কের ওপর তাদের পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালের নিরাপত্তা পুলিশ সদস্য মো. রিপন চৌধুরী বলেন, ‘রাত সাড়ে ৯টার দিকে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দুইজনকে আনা হয়। এ সময় হাসপাতালের চিকিৎসক একজনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত অপরজন শহরে ফুয়াদ আল খতিব হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

নিহতের মরদেহ হাসপাতালের মর্গে আছে বলেও জানান এ পুলিশ সদস্য।

আরও পড়ুন:
সুপ্রভাতের পর ভিক্টর: এবার‌ও ব্যানার পাল্টে পার?
ভিক্টরের বাস বন্ধের দাবি, সড়ক ছাড়লেন নাদিয়া হত্যায় বিক্ষুব্ধরা
মোটরসাইকেলে ধাক্কা, বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর প্রাণ কেড়ে নিল বাস
সিলেটে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, নিহত ৩
সেতুর রেলিংয়ে বাইকের ধাক্কা, ২ কলেজছাত্র নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A child died after falling into an uncovered septic tank

ঢাকনাহীন সেপটিক ট্যাংকে পড়ে প্রাণ গেল শিশুর

ঢাকনাহীন সেপটিক ট্যাংকে পড়ে প্রাণ গেল শিশুর
ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শিশুর পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেলে মামলা হবে।

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় সেপটিক ট্যাংকের ভেতর পড়ে এক শিশু মারা গেছে।

সদর উপজেলার কাশীপুর ইউনিয়নের উত্তর গোয়ালবন্দ ব্যাংককলোনী আবাসিক এলাকায় বৃহস্পতিবার বিকেলে এ ঘটনা ঘটে।

সাড়ে ৫ বছর বয়সী মুশফিকা আক্তার ওই এলাকার মো. খলিলের মেয়ে। চলতি বছরের জানুয়ারিতে শিশুটি স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছিল।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রকিবুজ্জামান নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, নির্মাণাধীন একটি ভবনের সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা খোলা থাকায় ভেতরে পড়ে যায় মুশফিকা আক্তার নামে ওই শিশু। শিশুটির মা তাকে ভেতর থেকে বের করে আনে। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নির্মাণাধীন ভবনটির মালিক মোরশেদা বেগম বলেন, ‘দুপুর আড়াইটার দিকেও তিনি সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা লাগানো দেখেছেন। কেউ ঢাকনাটি চুরি করে নিয়ে গেছে বলে ধারণা করছি। বিকেল ৪টার দিকে ঘর থেকে বেরিয়ে সেপটিক ট্যাংকের ঢাকনা খোলা দেখি। পরে ট্যাংকের ভেতর উঁকি দিয়ে বাচ্চা বয়সী কারও টুপি ও জুতা ভাসতে দেখি। পরে আশেপাশের লোকজনকে ডাক দেই।

‘আশেপাশের লোকজনের সঙ্গে কথা বলার সময় পাশের বাসা থেকে বাচ্চার মা বেরিয়ে আসে। পরে টর্চলাইটের আলো জ্বেলে বাচ্চাটিতে ভাসতে দেখা যায়।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হৈ-চৈ শুনে শিশুটির মা ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন। বাচ্চাটিকে বের করার পর তার মুখ সাদা হয়ে গেছে। পরে শিশুটির পেটে চাপ দিয়ে পানি বের করার চেষ্টা করা হয়। পরে মুমূর্ষু অবস্থায় শিশুটিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার এস কে ফরহাদ জানান, শিশুটির মরদেহ তার পরিবারের লোকজন নিয়ে গেছে। হাসপাতাল থেকে পুলিশকে ঘটনা জানানো হয়েছে।

ওসি রকিবুজ্জামান জানান, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। শিশুর পরিবারের কাছ থেকে অভিযোগ পেলে মামলা হবে।

আরও পড়ুন:
৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ
বাসায় যেতে চাওয়া রেজাকে মর্গে পাঠাল মধ্যরাতের ট্রাক
নাটোরে আলাদা স্থান থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার
খেলার সময় ছাদ থেকে পড়ে মারা গেল দুই শিশু
নির্মিত ভবনের বিম ভেঙে প্রাণ গেল শ্রমিকের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two workers were tied to a pole and beaten to death on the charge of theft

চুরির অভিযোগে খুঁটিতে বেঁধে দুই শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা 

চুরির অভিযোগে খুঁটিতে বেঁধে দুই শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যা 
বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি বলেন, ‘ওই শ্রমিকদের পরিবারকে রাতেই খবর দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

রাজশাহীতে একটি খাদ্যপণ্য প্রস্তুতকারী কোম্পানির মালিকের বাসায় দুই নির্মাণ শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত কারখানা মালিকসহ চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

মহানগরীর বিসিক শিল্প এলাকার মডার্ণ ফুড নামের কোম্পানির মালিকের বাসায় বৃহস্পতিবার বিকেলে ঘটে এ ঘটনা।

প্রাণ হারানো শ্রমিকদের একজন রেজাউল ইসলাম। তিনি নওগাঁর মান্দা থানার সুগনিয়া গ্রামের বাসিন্দা বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। অপর শ্রমিকের পরিচয় জানা যায় নি।

বোয়ালিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, সপুরার মডার্ণ ফুডের মালিক আব্দুল মালেক হাজীর ছেলে মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর কারখানা সংলগ্ন বাসায় রাজমিস্ত্রির কাজ করছিলেন দুই শ্রমিক। বৃহস্পতিবার দুপুরে ১০ লাখ টাকা চুরির অভিযোগে দুই শ্রমিককে খুঁটিতে বেঁধে লোহার রড ও লাঠি দিয়ে বেদম মারধর করা হয় সারা শরীরে।

চুরির স্বীকারোক্তি আদায়ে রাত সোয়া ৯টা পর্যন্ত দুই শ্রমিকের ওপর নির্যাতন চলে। নির্যাতনের সময় মোবাইল ফোনে ভিডিও ধারণ করা হয়। এমন দুটি ভিডিও পুলিশ উদ্ধার করেছে।

ওসি মাজহারুল জানান, গোপন তথ্যের ভিত্তিতে রাত সাড়ে ৯টার দিকে কারখানার সংলগ্ন মালিকের বাসায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় দুই শ্রমিককে মুমূর্ষু অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশ পিকআপ ভ্যানে তুলে তাদের দ্রুত রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। এ সময় চিকিৎসকরা এক শ্রমিককে মৃত ঘোষণা করেন। আহত রেজাউলকে ৮ নম্বর ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। কিন্তু ভর্তির কয়েক মিনিট পর তারও মৃত্যু হয়।

দুই শ্রমিককে উদ্ধারের সময় কারখানা মালিকের ছেলে আব্দুল্লাহ, আব্দুল্লাহর শ্বশুর মাসুম রেজা, শ্যালক মহিউদ্দিন রিয়াল ও ম্যানেজার এমরান হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ । তাদের বোয়ালিয়া থানায় প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ওসি বলেন, ‘ওই শ্রমিকদের পরিবারকে রাতেই খবর দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সকালে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ফরেনসিক বিভাগে ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।’

আরও পড়ুন:
দুই শিশুকে হত্যার দায়ে এক নারীর মৃত্যুদণ্ড, আরেকজনের যাবজ্জীবন
নৌ-পুলিশকে গলাটিপে হত্যার অভিযোগ
ধলেশ্বরী নদীতে হাত-পা কাটা অজ্ঞাত ব্যক্তির মরদেহ
সাবেক ইউপি সদস্যকে টেঁটা দিয়ে হত্যা
জেল থেকে মায়ের সঙ্গে আসামির ফোনালাপে হত্যারহস্য উদঘাটন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
999 called the dead body of the young woman

৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ

৯৯৯-এ ফোন, মিলল তরুণীর মরদেহ এনজিও কর্মী নিশাত আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত
বাড়ির মালিক গফুর সওদাগর বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে বাসার দ্বিতীয় তলায় নিশাতের রুমের দিকে যায় আমার মেয়েরা। বরাবরের মতোই তার বাসার দরজা ভেড়ানো ছিল। ধাক্কা দিতেই দরোজা খুলে যায়। মেয়েরা তার দেহ ঝুলন্ত দেখতে পায়। তারপর ৯৯৯ নম্বরে ফোন করা হয়।’

কক্সবাজার শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকায় এক নারী এনজিও কর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম নিশাত আহমেদ।

বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম।

নিশাত আহমেদ শহরের পশ্চিম বাহারছড়া এলাকার গফুর সওদাগরের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। তার গ্রামের বাড়ি চকরিয়ার ডুলাহাজারায়। তিনি আন্তর্জাতিক একটি এনজিও সংস্থায় সিকিউরিটি গার্ড হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

বাড়ির মালিক গফুর সওদাগর বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে বাসার দ্বিতীয় তলায় নিশাতের রুমের দিকে যায় আমার মেয়েরা। বরাবরের মতোই তার বাসার দরজা ভেড়ানো ছিল। ধাক্কা দিতেই দরোজা খুলে যায়। মেয়েরা তার দেহ ঝুলন্ত দেখতে পায়। তারপর ৯৯৯ নম্বরে ফোন করা হয়।’

ঘটনাস্থলে থাকা কক্সবাজার সদর মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইফতেখার উদ্দিন বলেন, ‘৯৯৯-এ ফোন পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে এক তরুণীর ঝুলন্ত মরদেহ পেয়েছি। মরদেহ নামিয়ে ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
মসজিদের মেস ঘরে খাদেমের ঝুলন্ত মরদেহ
ধানমন্ডির রাস্তায় হুইল চেয়ারে মরদেহ
বংশালের গলিতে রক্তাক্ত মরদেহ
নিখোঁজের ৪ দিন পর টয়লেটের ট্যাংকে মা-ছেলের মরদেহ
মুক্তিপণের দাবিতে অপহৃত শিশুর বস্তাবন্দি মরদেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Half a million people suffer due to lack of bridges

সেতুর অভাবে দুর্ভোগে অর্ধলক্ষাধিক মানুষ

সেতুর অভাবে দুর্ভোগে অর্ধলক্ষাধিক মানুষ সেতুর অভাবে নৌকায় নদী পার হচ্ছেন এলাকার বাসিন্দারা। ছবি: নিউজবাংলা
এ বিষয়ে জানতে চাইলে এলজিইডি মন্ত্রণালয়ের পল্লি সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণে সমীক্ষা প্রকল্পের পরিচালক নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এবাদত আলী বলেন, ‘স্থানীয় প্রকৌশলী এবং জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে আমি সেতু নির্মাণের এলাকা পরিদর্শন করে এসেছি। শুধু আশ্বাস নয়, দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘোড়াউত্রা নদীর উপর মাইজচর ও দিলালপুর সংযোগ সেতু নির্মিত হবে।’

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে একটি সেতুর অভাবে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে দুটি ইউনিয়নের ৫০ হাজারের বেশি মানুষের। সেতুর অভাবে হাট-বাজার, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও উপজেলা সদরে যেতে হলে নৌকাই একমাত্র ভরসা এখানকার বাসিন্দাদের। ফলে যোগাযোগ ও পণ্য পরিবহনের ক্ষেত্রে নানা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন এ অঞ্চলের বাসিন্দারা।

উপজেলার মাইজচর ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে ঘোড়াউত্রা নদী পার হতে হয় ছোট ছোট নৌকা দিয়ে। বর্ষায় উত্তাল ঢেউয়ে অনেক সময় নৌকা ডুবে ঘটে দুর্ঘটনা আর শুকনো মৌসুমে কাঁদা-পানিতে ভিজে নৌকায় ওঠতে হয় তাদের।

এতে নিয়মিত বিদ্যালয়ে যেতে পারে না শিক্ষার্থীরা। উৎপাদিত কৃষি পণ্যের সঠিক মূল্যও পাচ্ছে না কৃষক। চরম ভোগান্তি পোহায় কয়েকশ শিক্ষার্থীসহ ৫০ হাজারের বেশি মানুষের। উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগের একমাত্র পথ এ নদী। এই নদী পার হয়েই শিক্ষার্থীদের যেতে হয় উচ্চ শিক্ষার জন্য। স্বাস্থ্য সেবা নিতে ও সরকারি-বেসরকারি অফিস এবং বাজারেও যেতে হয় একই পথে। উপজেলার মাইজচর ইউনিয়নের লোকজন পার হন দিলালপুর ঘাট দিয়ে।

এ ছাড়াও পাশ্ববর্তী হুমাইপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষ প্রতিদিন এ ঘাট দিয়ে পার হন। বর্ষা মৌসুমে বাড়ির ঘাট থেকে নৌকায় উঠতে পারলেও শুকনো মৌসুমে প্রায় দুই কিলোমিটার রাস্তা হেঁটে এসে নদী পার হতে হয় তাদের। জোয়ারের সময় নদীতে পানি বাড়লে ইঞ্জিনচালিত নৌকা তীরে ভিড়ে তবে পানি কমে গেলে বাধে বিপত্তি।

দিলালপুর আবদুল করিম উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী হেরা মনি বলেন, ‘বছরের অধিকাংশ সময় নদীতে অনেক পানি থাকে। এই সময়ে নদী পার হতে অনেক ভয় লাগে। অনেক সময় নৌকা দিয়ে নদী পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়। শুকনো মৌসুমে পানি কমে গেলে নদী পার হতে গিয়ে কাঁদা লেপ্টে জামা কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। এই অবস্থায় ওইদিন আর স্কুলে যাওয়ার সুযোগ থাকে না।’

বাজিতপুর উপজেলা ছাত্রলীগ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জায়েদ উল্লাহ ফুরকান বলেন, ‘এই নদীতে সেতু না থাকায় সারা বছর আমাদের খুবই কষ্ট করতে হয়। স্মার্ট বাংলাদেশ গড়তে গেলে আমাদেরকেও এর অংশীদার করতে হবে। তাই সেতু নির্মাণের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ চাই।’

দিলালপুর আবদুল করিম উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আ. কাইয়ুম জানান, মাইজচর ইউনিয়নের প্রায় দুই শতাধিক শিক্ষার্থী এই বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করে। তারা প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করে বিদ্যালয়ে আসে। যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে অনেক শিক্ষার্থী ঝরে পড়েছে। ঘোড়াউত্রা নদীতে একটি সেতু নির্মিত হলে শিশুরাও বিদ্যালয়ে আসতে আগ্রহী হবে। ফলে পিছিয়ে থাকা এলাকাগুলোতেও শিক্ষার হার বাড়বে।

মাইজচর গ্রামের কৃষক হোসেন আলী বলেন, ‘এ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে প্রচুর পরিমাণ সবজি উৎপাদন হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে এখানকার কৃষকেরা ন্যায্যমূল্য না পাওয়াতে সবজি উৎপাদনে নিরুৎসাহিত হচ্ছে। আমাদের বাপ-দাদার আমল থেকে হাজার হাজার মানুষ কষ্ট করছে। ঘোড়াউত্রা নদীতে একটি সেতু নির্মিত হলে কৃষকেরাও তাদের উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য পাবে। আমাদেরও কষ্ট দূর হবে।’

মাইজচর ইউনিয়নের বাসিন্দা জাহানারা বেগম বলেন, ‘একটা বিরিজের লাগি সারাডা জীবন কষ্ট কইরে গেলাম। অহনও করতাছি। বিরিজ আর অইলো না। আমরার দাবি এহানো একটা বিরিজ দরহার।’

সেতুর অভাবে দুর্ভোগে অর্ধলক্ষাধিক মানুষ
নদী পার হওয়ার জন্য অপেক্ষারত মানুষেরা। ছবি: নিউজবাংলা

মাইজচর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তাবারক মিয়াজি বলেন, ‘উপজেলা সদর থেকে আমাদের ইউনিয়নটি একেবারেই বিচ্ছিন্ন। দেশ স্বাধীনের পর থেকে এই নদীতে সেতু নির্মাণের দাবি থাকলেও সেতু নির্মাণ হয়নি। এ নদী পার হতে গিয়ে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। এ ছাড়াও কেউ অসুস্থ হলে সময়মতো চিকিৎসা করা সম্ভব হয় না। অনেক সময় নদী পার হওয়ার আগেই বিনা চিকিৎসায় মারা যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই অবস্থায় আমাদের দীর্ঘদিনের দাবির প্রেক্ষিতে কিশোরগঞ্জ-৫ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য মো. আফজল হোসেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে চিঠি দিয়েছেন। কয়েকদিন আগে মন্ত্রণালয়ের প্রকল্প পরিচালক সেতু নির্মাণের এলাকা পরিদর্শন করেছেন।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এলজিইডি মন্ত্রণালয়ের পল্লি সড়ক ও গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণে সমীক্ষা প্রকল্পের পরিচালক নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এবাদত আলী বলেন, ‘স্থানীয় প্রকৌশলী এবং জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে নিয়ে আমি সেতু নির্মাণের এলাকা পরিদর্শন করে এসেছি। শুধু আশ্বাস নয়, দ্রুত সময়ের মধ্যে ঘোড়াউত্রা নদীর উপর মাইজচর ও দিলালপুর সংযোগ সেতু নির্মিত হবে।’

আরও পড়ুন:
শহরের অংশ হয়েও গ্রামেই বসবাস তাদের
বাড়ির প্রাচীর বানাবেন, তাই রাস্তা সরাতে হবে
১০ গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ ৬ কিমির রাস্তা
রংপুরের বাস বন্ধ, রাজশাহী টার্মিনালে এসে হতাশ অনেকে
কুড়ি বছর ধরে ভোগাচ্ছে তিন কিলোমিটার রাস্তা 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Silgala 20 thousand tons of rice stored in the godown

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা বৃহস্পতিবার অভিযান চালিয়ে বাগেরহাটের ফকিরহাটে এএমএম জুট মিলের গোডাউন থেকে বিপুল চাল জব্দ করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গুদামে মজুদ করা বিপুল পরিমাণ চাল পাওয়া যায়। এই চালগুলো অতিরিক্ত দামে বিক্রির জন্য সেখানে রাখা হয়েছিল।’

বাগেরহাটের ফকিরহাটে অতিরিক্ত মুনাফার জন্য মজুদ করা ২০ হাজার টন চাল জব্দ করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্য্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার লখপুর এলাকার এএমএম জুট মিলের গোডাউন থেকে এই চাল জব্দ করা হয়।

অবৈধ মজুদের অপরাধে গুদামের দায়িত্বে থাকা অলোক চক্রবর্ত্তী নামের এক ব্যক্তিকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সে সঙ্গে পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত গুদামটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়েছে।

বাগেরহাট জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার রুবাইয়া বিনতে কাশেম ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক হিসেবে এই আদেশ দেন। এ সময় র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা, বাগেরহাট জেলা কৃষি বিপণন কর্মকর্তা সুজাত হোসেন খান, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকাঈ পরিচালক আব্দুল্লাহ আল ইমরানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

গোডাউনে মজুদ ২০ হাজার টন চাল, সিলগালা
চাল জব্দ করার পর এএমএম জুটি মিলের গোডাউন সিলগালা করে দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা

র‌্যাব-৬ খুলনার কোম্পানি কমান্ডার মো. বদরুদ্দৌজা বলেন, ‘গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে গুদামে মজুদ করা বিপুল পরিমাণ চাল পাওয়া যায়। এই চালগুলো অতিরিক্ত দামে বিক্রির জন্য সেখানে রাখা হয়েছিল।’

তবে গুদামের দায়িত্বে থাকা অলোক চক্রবর্ত্তীর দাবি, জব্দ চালগুলো সরকারি গুদামে দেয়ার জন্য আমদানি করা হয়েছিল। কিন্তু চালগুলো নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আর গুদামে দেয়া যায়নি। চালের পরিমাণ ১ হাজার ১৮৯ টন।’

জেলা কৃষি বিপনন কর্মকর্তা মো. সুজাত হোসেন খান বলেন, ‘খাদ্য অধিদপ্তরের চাহিদা অনুযায়ী এই চাল আমদানি করা হয়েছিল। কিন্তু পরবর্তীতে চালের মান খারাপ উল্লেখ করে চালগুলো আর সরকারি খাদ্য গুদামে দেয়নি চাল ব্যবসায়ী। আসলে এর মধ্যে মাত্র দুই-তিন বস্তা চাল খারাপ হতে পারে। বাকিগুলোর মান ভাল।

‘গুদামে ২০ হাজার টন চাল রয়েছে। জুট মিলে এত চাল থাকার কথা নয়। সব চাল ভালো থাকা সত্ত্বেও তারা নষ্ট বলে উল্লেখ করছে। মূলত অতিরিক্ত মুনাফার উদ্দেশ্যে এই বিপুল পরিমাণ চাল মজুদ করা হয়েছিল।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চাল আমদানিকারক বৈধ কাগজপত্র ও খাদ্য বিভাগের নির্দেশনা নিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করবেন। জেলা প্রশাসক তার কাগজপত্র, চালের পরিমাণ, স্থানীয় সাক্ষীদের বক্তব্য ও সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত দেবেন। আপাতত গুদামটি সিলগালা থাকবে।’

আরও পড়ুন:
দেশি চাল প্লাস্টিকের ব্যাগে ভরলেই জব্দ
সরকারি গুদামে ধান-চাল দিচ্ছেন না মিল মালিকরা
জব্দ হওয়া ১১৩০ বস্তা চাল উধাওয়ের ঘটনায় মামলা
চাল-গমের দাম সহনীয় রাখতে এগিয়ে এলো বাংলাদেশ ব্যাংক
৬ প্রতিষ্ঠানকে চাল আমদানির অনুমতি দিতে চিঠি

মন্তব্য

p
উপরে