× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Fardeens girlfriend Bushra is in jail denied bail
hear-news
player
google_news print-icon

ফারদিন হত্যায় গ্রেপ্তার বুশরার জামিন মেলেনি

ফারদিন-হত্যায়-গ্রেপ্তার-বুশরার-জামিন-মেলেনি
ফারদিন নূর পরশ ও আমাতুল বুশরা। ছবি: সংগৃহীত
ফারদিন ৪ নভেম্বর নিখোঁজ হন। এর তিন দিন পর ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র ফারদিন নূর পরশ হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার তার বান্ধবী আমাতুল্লাহ বুশরাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত।

পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার বুশরাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আতাউল্লাহর আদালতে হাজির করে পুলিশ। শুনানি শেষে জামিন আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক।

আদালতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক মজিবুর রহমান মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে রাখার আবেদন করেন। আর জামিনের আবেদন করেন আসামি পক্ষের আইনজীবী।

এর আগে ১০ নভেম্বর তদন্তের জন্য বুশরাকে সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করে রামপুরা থানার পুলিশ। আদালত তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ড দেয়।

ফারদিনের মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় বুশরা এবং অজ্ঞাতপরিচয় কয়েকজনের নামে ৯ নভেম্বর রাতে রামপুরা থানায় মামলা করেন ফারদিনের বাবা নূর উদ্দিন রানা। পরদিন সকালে রাজধানীর রামপুরা এলাকার একটি বাসা থেকে বুশরাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

৪ নভেম্বর নিখোঁজ হন ফারদিন। এর তিন দিন পর ৭ নভেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জে শীতলক্ষ্যা নদী থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে নৌ পুলিশ। তিনি রাজধানীর ডেমরা এলাকায় থাকতেন, বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ বলছে, তদন্তে ফারদিনের সঙ্গে বুশরার নিছক পরিচয় ও বন্ধুত্বের তথ্যই পাওয়া গেছে।

পুলিশি তদন্তে জানা যায়, নিখোঁজ হওয়ার দিন বিকেল থেকে রাত ১০টা নাগাদ বুশরাকে নিয়ে রাজধানীর কয়েকটি জায়গায় ঘোরাঘুরি করেন ফারদিন। এরপর রামপুরায় বুশরা যে মেসে থাকেন তার কাছাকাছি তাকে পৌঁছে দেন। এরপর আর ফারদিন বুয়েট ক্যাম্পাস বা নিজের বাসায় ফেরেননি।

ডিবির মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) রাজিব আল মাসুদ গত সোমবার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ফারদিন হত্যায় বুশরার সম্পৃক্ততার বিষয়ে কোনো কংক্রিট প্রমাণ পাইনি। তবে আমাদের তদন্ত চলমান।’

মামলায় বুশরাকে আসামি করা ও গ্রেপ্তারের বিষয়ে জানতে চাইলে রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম ওই দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে ফারদিনের বান্ধবী বুশরার সেই ধরনের কোনো সম্পৃক্ততার তথ্য না পাওয়ায় মামলায় তার নাম উল্লেখ না করতে অনুরোধ করেছিলাম। আমরা তাকে (মামলার বাদী) পরামর্শ দিয়েছিলাম, যেহেতু সে-ও (বুশরা) একজন শিক্ষার্থী, পরবর্তী অনুসন্ধানে তার সংশ্লিষ্টতা উঠে এলে আমরা আসামি হিসেবে তাকে যুক্ত করব।

‘তবে তিনি (বাদী) কোনো কথা মানতেই রাজি ছিলেন না। তার বক্তব্য ছিল, যেহেতু ওই মেয়ে শেষ সময়ে আমার ছেলের সঙ্গে ছিল তাই অবশ্যই তাকে মামলার আসামি করতে হবে।’

রাজধানীর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী বুশরার বাবা মঞ্জুরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার মেয়েকে এ ঘটনায় ভুক্তভোগী বানানো হয়েছে। আমার মেয়ে ফারদিন হত্যায় জড়িত নয়।’

এর আগে বুশরার মা ইয়াসমিন নিউজবাংলাকে জানান, ‘২০১৮ সালের শেষের দিকে ফেসবুকে একটি গ্রুপের মাধ্যমে বুশরার পরিচয় হয় ফারদিন নূর পরশের সঙ্গে। পরিচয়ের পর থেকে মেসেঞ্জার ও মোবাইল কলে বিভিন্ন সময়ে একে অপরের সঙ্গে কথা বলত। আর এভাবেই তাদের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে ওঠে।’

আরও পড়ুন:
ফারদিন ও বুশরার পরিচয় চার বছরের
ফারদিন হত্যা মামলা তদন্তে মাঠে ডিবি
ফারদিন হত্যা মামলার প্রতিবেদন ১২ ডিসেম্বর
ফারদিন হত্যা: বুশরা গ্রেপ্তার হলেও মোটিভ জানে না পুলিশ
ফারদিনের লাশ শীতলক্ষ্যায় গেল কীভাবে যাচাই হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Prime Ministers Chief Secretary Tofazzal Hossain Mia

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব তোফাজ্জল হোসেন মিয়া মো.তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। ছবি: সংগৃহীত
প্রধানমন্ত্রীর নতুন মুখ্য সচিব পদে নিয়োগ পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া।

প্রধানমন্ত্রীর নতুন মুখ্য সচিব পদে নিয়োগ পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব মো.তোফাজ্জল হোসেন মিয়া। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়।

অন্যদিকে, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব পদে নিয়োগ পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব-১ মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন।

আরও পড়ুন:
২০২৪-এর প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন, ভোট চাইলেন শেখ হাসিনা
আ.লীগকে দেয়া জনগণের ভোট বৃথা যায়নি: প্রধানমন্ত্রী
১০ ডিসেম্বরের আগেই সন্ত্রাস শুরু করেছে বিএনপি: ওবায়দুল কাদের
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা: মিছিলে সরব নারীরা
যুদ্ধ নয়, আলোচনায় সমাধান সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangabandhus speech in the United Nations Resolution

বঙ্গবন্ধুর উক্তি জাতিসংঘ রেজুলেশনে

বঙ্গবন্ধুর উক্তি জাতিসংঘ রেজুলেশনে জাতিসংঘে বক্তব্য দিচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান। ফাইল ছবি
নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভায় মঙ্গলবার কোভিড পরবর্তী বিশ্ব ব্যবস্থা এবং রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে রেজুলেশনটি উত্থাপন করে তুর্কমেনিস্তান।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ‘ইন্টারন্যাশনাল ইয়ার অব ডায়ালগ অ্যাজ অ্যা গ্যারান্টি অব পিস’ শীর্ষক রেজুলেশনের ১৪তম প্যারায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘সকলের সাথে বন্ধুত্ব, কারও সাথে বৈরিতা নয়’- ঐতিহাসিক উক্তিটি সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়েছে।

নিউইয়র্কে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সভায় মঙ্গলবার কোভিড পরবর্তী বিশ্ব ব্যবস্থা এবং রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে রেজুলেশনটি উত্থাপন করে তুর্কমেনিস্তান।

রেজুলেশনে বঙ্গবন্ধুর উক্তিটি সন্নিবেশিত হয়েছে এভাবে-

“দারিদ্র্য, ক্ষুধা, রোগ, নিরক্ষরতা এবং বেকারত্বের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের গুরুত্ব স্বীকার করে এবং গঠনমূলক সহযোগিতা, সংলাপ এবং পারস্পরিক বোঝাপড়ার চেতনায় সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব এবং কারও প্রতি বিদ্বেষ নয় মর্মে জোর দেয়া হলে তা এই উদ্দেশ্যগুলো অর্জনে সহায়তা করবে।”

১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ভাষণে বঙ্গবন্ধু যে বিষয়গুলোর ওপর জোর দিয়ে বিশ্বশান্তির কথা বলেছিলেন, সেগুলোর ধারণামূলক ভিত্তি পেতে এই অনুচ্ছেদের প্রস্তাবনা তৈরি করা হয়েছে।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মো. আব্দুল মোহিতের নির্দেশনায় মিশনের কূটনীতিক মো. মনোয়ার হোসেন রেজুলেশনটির শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত নিবিড়ভাবে কাজ করেছেন।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ৭০টি দেশ এই রেজুলেশনটিতে কো-স্পন্সর করেছে।

আরও পড়ুন:
জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের সদস্যরাও পাবেন প্রণোদনা
স্ক্রুতে জাতির পিতা, কন্যার প্রতিচ্ছবি 
কর্ণফুলী টানেলে কীভাবে যুক্ত হলো চীন, জানালেন সচিব
চট্টগ্রামের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর মায়াবী টান: কাদের
বঙ্গবন্ধু টানেলের উত্তর টিউবের সমাপনীও শিগগিরই: প্রধানমন্ত্রী 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sheikh Hasina wanted to vote in the first week of 2024

২০২৪-এর প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন, ভোট চাইলেন শেখ হাসিনা

২০২৪-এর প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন, ভোট চাইলেন শেখ হাসিনা কক্সবাজারের শেখ কামাল স্টেডিয়ামে আওয়ামী লীগের জনসভায় বক্তব্য দেন শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
কক্সবাজারে আওয়ামী লীগের জনসভায় শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এটুকুই বলব- রিক্ত আমি, নিঃস্ব আমি, দেবার কিছু নেই। আছে শুধু ভালোবাসা দিয়ে গেলাম তাই।’

২০২৪ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের ভোট হচ্ছে জানিয়ে আওয়ামী লীগকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

কক্সবাজারে শেখ কামাল স্টেডিয়ামে বুধবার জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০২৪ সালের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে আগামী নির্বাচন হবে। সেই নির্বাচনেও আপনাদের কাছে নৌকা মার্কায় ভোট চাই। আপনারা কি নৌকায় ভোট দেবেন? আপনারা হাত তুলে ওয়াদা করেন দেবেন কি না?’

এ সময় নেতা-কর্মীরা হাত তুলে নৌকায় ভোট দেয়ার ওয়াদা করেন। তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আপনাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে এটুকুই বলব- রিক্ত আমি, নিঃস্ব আমি, দেবার কিছু নেই। আছে শুধু ভালোবাসা দিয়ে গেলাম তাই।

‘আপনারা দোয়া করবেন। আমি আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে সব সময় দোয়া করি, আপনারা ভালো থাকেন, সুস্থ থাকুন, উন্নত জীবন পান, সেই কামনা করি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এ দেশের মানুষ বারবার ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে বলেই দেশের জন্য কাজ করতে পারছি। দেশের উন্নয়ন হচ্ছে। ২০১৪ ও ২০১৮ সালে জনগণ আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়েছে বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তাদের ভোট বৃথা যায়নি।’

আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য কেউ কক্সবাজারের উন্নয়ন করেনি মন্তব্য করে শেখ হাসিনা ভবিষ্যতেও ভোট দিতে কক্সবাজারবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।

বিএনপির সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি এ দেশকে মানি লন্ডারিং, জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস এবং লুটপাট ছাড়া আর কিছু দিতে পারেনি। তারা ৩ হাজার মানুষ আগুন দিয়ে পুড়িয়েছে, ৫০০ মানুষ হত্যা করেছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০০৪ সালের ২৪ আগস্ট আমাদের শান্তি র‌্যালিতে দিনেদুপুরে গ্রেনেড হামলা করে তারেক-খালেদা জিয়া গং। যুদ্ধের ময়দানের গ্রেনেড আমাদের ওপর ছোড়া হয়েছিল। আইভি রহমানসহ ২২ জন নেতা-কর্মী মারা যান। আল্লাহর রহমতে আমি বেঁচে গিয়েছিলাম।

‘জামায়াত-বিএনপি এ দেশের মানুষকে কী দিয়েছে? অগ্নি সন্ত্রাস, খুন, মানি লন্ডারিং এগুলো দিয়েছে। আর তাদের আন্দোলন মানেই মানুষকে পুড়িয়ে মারা।’

জনসভায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ‌এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরও বক্তব্য দেন। দলীয় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান; যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়াসহ কেন্দ্রীয় এবং জেলা পর্যায়ের নেতারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে কক্সবাজারে ২৯টি প্রকল্প উদ্বোধন এবং চারটির ভিত্তিপ্রস্তর করেন সরকারপ্রধান। বঙ্গবন্ধুকন্যা কক্সবাজার ও মহেশখালীতে আরও দুটি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠারও প্রতিশ্রুতি দেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছু নেই। বাবা-মা-ভাই-আত্মীয়স্বজন হারিয়ে আমি রিক্ত, নিঃস্ব। কিন্তু যে বাংলাদেশের মানুষের জন্য তারা প্রাণ দিয়ে গেছেন, তাদের জন্য কাজ করব। এ দেশের মানুষের মাঝেই খুঁজে নেব প্রয়াত আত্মীয়স্বজনকে।

‘বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এ দেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধশীল দেশে নিয়ে যেতে চাই।’

পাঁচ বছর পর শেখ হাসিনার কক্সবাজার সফরে ১ হাজার ৩৯৩ কোটি টাকা ব্যয়ে উদ্বোধন করা ২৯ প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে কক্সবাজার গণপূর্ত উদ্যান, বাহারছড়া বীর মুক্তিযোদ্ধা মাঠ, কুতুবদিয়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ভবন, উপজেলা ভূমি অফিস ভবন, পেকুয়া; কক্সবাজার জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় ভবন, শেখ হাসিনা জোয়ারিয়ানালা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা অ্যাকাডেমিক ভবন, আবদুল মাবুদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা অ্যাকাডেমিক ভবন, মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা অ্যাকাডেমিক ভবন।

কক্সবাজার জেলার লিঙ্ক রোড-লাবণী মোড় সড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ; রামু-ফতেখাঁরকুল-মরিচ্যা জাতীয় মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ; টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ জেলা মহাসড়কের হাড়িয়াখালী থেকে শাহপরীর দ্বীপ অংশ পুনর্নির্মাণ, প্রশস্তকরণ ও শক্তিশালীকরণ; বাঁকখালী নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ, নিষ্কাশন, সেচ ও ড্রেজিং প্রকল্প (প্রথম পর্যায়), শাহপরীর দ্বীপে সি ডাইক অংশে বাঁধ পুনর্নির্মাণ ও প্রতিরক্ষাকাজও উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

ক্ষতিগ্রস্ত পোল্ডারের পুনর্বাসন প্রকল্প, রামু কলঘর বাজার-রাজারকুল ইউনিয়ন সড়কে বাঁকখালী নদীর ওপর ৩৯৯ মিটার দীর্ঘ সাংসদ ও রাষ্ট্রদূত ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরী সেতু, কক্সবাজার জেলায় নবনির্মিত ছয়টি ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভবন, চারটি উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন (রামু, টেকনাফ, মহেশখালী ও উখিয়া), কক্সবাজার পৌরসভার এয়ারপোর্ট রোড আরসিসিকরণ ও অন্যান্য; শহীদ সরণি আরসিসিকরণ ও অন্যান্য; বীরশ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম সড়ক আরসিসিকরণ; নাজিরারটেক শুঁটকিমহাল সড়ক আরসিসিকরণ; টেকপাড়া সড়ক আরসিসিকরণ; সি বিচ রোড আরসিসিকরণ; মুক্তিযোদ্ধা সরণি আরসিসিকরণ; সৈকত-স্মরণ আবাসিক এলাকা সড়ক আরসিসিকরণ ও অন্যান্য এবং আইনজীবী সমিতির নতুন ভবনও প্রকল্পও রয়েছে।

এ সময় চারটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী। এ প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট (দ্বিতীয় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্প; কুতুবদিয়া উপজেলার ধুরুং জিসি মিরাখালী সড়কে ধুরুংঘাটে ১৫৩ দশমিক ২৫ মিটার জেটি এবং আকবর বলী ঘাটে ১৫৩ দশমিক ২৫ মিটার জেটি নির্মাণ; মহেশখালী উপজেলার গোরকঘাটা ঘাটে জেটি নির্মাণ; বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত নিরাপত্তা উন্নত করার জন্য উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় নাফ নদ বরাবর পোল্ডারসমূহের (৬৭/এ, ৬৭, ৬৭/বি এবং ৬৮) পুনর্বাসন প্রকল্প।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা: মিছিলে সরব নারীরা
যুদ্ধ নয়, আলোচনায় সমাধান সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা: কক্সবাজারে আ.লীগ নেতা-কর্মীদের ঢল
১৫০০ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তারের অভিযোগ বিএনপির
বিএনপি যেন কখনও ক্ষমতায় আসতে না পারে: শেখ হাসিনা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police arrested Rizvi in ​​BNP office by breaking the door and detained many

দরজা ভেঙে বিএনপি কার্যালয়ে পুলিশ, রিজভী গ্রেপ্তার, আটক বহু

দরজা ভেঙে বিএনপি কার্যালয়ে পুলিশ, রিজভী গ্রেপ্তার, আটক বহু বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীকে আটক করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
দুপুরে ঘণ্টা দেড়েকের সংঘর্ষের পর পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। বিকেলে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াটও। বিএনপির শতাধিক নেতা-কর্মী একপর্যায়ে অবস্থান নেন দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে। বিকেলে দরজা ভেঙে কার্যালয়ে ঢোকে পুলিশ।

সংঘর্ষের পর এবার নয়াপল্টনে বিএনপি কার্যালয়ে অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। নেতা-কর্মীরা ভেতর থেকে দরজা বন্ধ করে রাখলেও পুলিশ সেটি ভেঙে ভেতরে ঢোকে। গ্রেপ্তারি পরোয়ানা থাকা বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীসহ বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মীকে আটক করা হয়।

কার্যালয়ের সামনে দুটি ট্রাকে অস্থায়ী মঞ্চ বানিয়ে সকাল থেকে যে বক্তব্য চলছিল, সেগুলোও সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

আগামী শনিবার অনুমতি না থাকলেও নয়াপল্টনে সমাবেশ করার ঘোষণায় অটল বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ‍পুলিশের এই সংঘর্ষ শুরু হয় দুপুরের পরপর।

ঘণ্টা দেড়েকের সংঘর্ষের পর পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। বিকেলে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট সোয়াটও।

বিএনপির শতাধিক নেতা-কর্মী একপর্যায়ে অবস্থান নেন দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে। তাদের উদ্দেশ করে দুই দফা কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। আহতদের নিয়ে আসতে অ্যাম্বুলেন্সকেও বাধা দেয়ার অভিযোগ করছে ‍বিএনপি।

বিকেল ৫টার দিকে পুলিশ সদস্যরা কার্যালয়ে ঢুকতে গিয়ে বাধা পান। ভেতর থেকে দরজা বন্ধ ছিল। একপর্যায়ে পুলিশ সে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে পড়ে।

ভেতরে অবস্থান করছিলেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, যার বিরুদ্ধে ১ ডিসেম্বর নাশকতার এক মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত। ২০১২ সালে ঢাকা সিটি করপোরেশনের একটি গাড়িতে আগুন দেয়ার মামলায় সেদিন আদালতে হাজিরা ছিল তার। কিন্তু বিএনপি নেতা হাজিরা না দেয়ার পর তাকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ আসে।

রিজভী ছাড়াও বিএনপি চেয়াপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকেও আটক করা হয়।

দরজা ভেঙে বিএনপি কার্যালয়ে পুলিশ, রিজভী গ্রেপ্তার, আটক বহু
কার্যালয়ের ভেতর থেকে বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রিজভীসহ বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতাকে পুলিশ প্রিজন ভ্যানে তুলে নিয়ে গেছে।’

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে গত ৮ অক্টোবর থেকে বিএনপি ধারাবাহিকভাবে প্রতিটি বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করে আসার পর আগামী ১০ ডিসেম্বর শনিবার রাজধানীতে জমায়েতের ঘোষণা দিয়েছে।

তবে এই সমাবেশের স্থল নিয়ে তৈরি হয়েছে বিরোধ। বিএনপি সমাবেশ করতে চায় নয়াপল্টনে। কিন্তু পুলিশ অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। কিন্তু তারা সেখানে যাবে না।

পুলিশ জানিয়েছে, সড়কে সমাবেশ করা যাবে না। এরপর বিএনপি আরামবাগে সমাবেশ করার কথা জানায় মৌখিকভাবে। তবে সে আবেদন মৌখিকভাবেই নাকচ করা হয়।

সমাবেশস্থলের কথা না জানিয়েই বিএনপি জনসভায় অংশ নেয়ার প্রচার চালাচ্ছিল। এর মধ্যে নেতা-কর্মীরা নয়াপল্টনে অবস্থানও নিতে থাকেন।

বিএনপির পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে এসে স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস দুপুরের আগে বলেন, তারা যেখানে অনুমতি চেয়েছেন, সমাবেশ সেখানেই হবে। কোনো গ্রহণযোগ্য বিকল্প প্রস্তাব থাকলে সেটি দিতে হবে পুলিশ বা সরকারকে।

পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, বিএনপির কাজ বিএনপি করবে- দলটির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী পর্ষদের নেতার পক্ষ থেকে এই বক্তব্য আসার কিছুক্ষণ পরেই শুরু হয় সংঘর্ষ।

আরও পড়ুন:
সরকার উৎখাতের পরিকল্পনার অভিযোগে আটক ২০
নয়াপল্টনে পুলিশ-বিএনপি ব্যাপক সংঘর্ষ
রিজভী, ইশরাকের পর এবার সোহেলকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা
পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, সমাবেশ নয়াপল্টনেই: বিএনপি
খুলনায় বিএনপির গ্রেপ্তার নেতা-কর্মী বেড়ে ৫৫

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A procession of pro BNP lawyers in the capital

রাজধানীতে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মিছিল

রাজধানীতে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মিছিল ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ উপলক্ষে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে বিএনপিপন্থি আইনজীবীদের মিছিল। ছবি: নিউজবাংলা
মিছিল শেষে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, ‘বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবশে নয়াপল্টনেই করার জন্য আমরা অনড় আছি। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কোনো জনসভা করবো না।’

১০ ডিসেম্বর ঢাকা বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করতে মিছিল করেছে বিএনিপন্থি জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর সুপ্রিমকোর্ট এলাকায় আইনজীবীরা এ মিছিল করেন।

মিছিলটি সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবন থেকে শুরু করে হাইকোর্ট মাজারগেট দিয়ে মূল সড়কে যায়। এরপর শিক্ষাভবন, কদম ফোয়ারা, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের পাশের গেট দিয়ে আবার সমিতি ভবনে ফিরে আসে। পরে আইনজীবী সমিতির ভবনে তারা বিভিন্ন স্লোগান দেন।

মিছিল শেষে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের মহাসচিব ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, ‘বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবশে নয়াপল্টনেই করার জন্য আমরা অনড় আছি। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কোনো জনসভা করবো না।’

তিনি বলেন, ‘সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবীরা রাজপথে নেমেছে গণতন্ত্র ও ভোটের অধিকার পুনরুদ্ধার এবং তত্ত্বাবধায়ক ব্যবস্থা পুনঃপ্রবর্তনের জন্য। নিশি রাতের অবৈধ শাসক গোষ্ঠিকে বিদায় দেয়ার জন্য সমন্বিতভাবে কাজ করা হবে।’

মিছিলের নেতৃত্ব দেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী, সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সুপ্রিম কোর্ট শাখার সভাপতি আব্দুল জাব্বার ভূঁইয়া ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম সজল। এতে শতাধিক বিএনপিপন্থি আইনজীবী অংশগ্রহণ করেন।

আরও পড়ুন:
বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে কাঁদানে গ্যাস
বিএনপি কার্যালয়ের সামনে ফখরুলের অবস্থান
বিএনপি কার্যালয় ঘিরে পুলিশের পাশাপাশি সোয়াট

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The police prevented the ambulance from taking the injured

বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে কাঁদানে গ্যাস

বিএনপি কার্যালয়ের ভেতরে কাঁদানে গ্যাস বিএনপি কার্যালয়ের ভেতর অভিযান চালায় পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
সংঘর্ষ শুরুর পর অসংখ্য নেতা-কর্মীর সঙ্গে আহত ব্যক্তিরাও বিএনপির দলীয় কার্যালয়ের ভেতরে অবস্থান নেন। সে সময় পুলিশ কার্যালয়ের ভেতর কাঁদানে গ্যাসের কয়েকটি শেল ছোড়ে। তখন বিএনপির পক্ষ থেকে চারটি অ্যাম্বুলেন্স আনা হয় আহতদের সরিয়ে নিতে। কিন্তু গাড়িগুলো নয়াপল্টন কার্যালয়ের সমানে এলে সেগুলোকে দাঁড়াতে দেয়নি পুলিশ। তখন আরও গ্যাস ছোড়া হয়।

নয়াপল্টনে বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সংঘর্ষে আহতদের হাসপাতালে নিয়ে যেতে আসা অ্যাম্বুলেন্সকে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে।

বিএনপির নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, সংঘর্ষের একপর্যায়ে তাদের দলের বেশ কিছু কর্মী দলীয় কার্যালয়ে আটকা পড়লে তাদের উদ্দেশ করে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। এতে তারা আহত হয়ে পড়লে হাসপাতালে নিয়ে যেতে আনা হয় অ্যাম্বুলেন্স। কিন্তু পুলিশ গাড়িগুলোকে আসতে দেয়নি।

নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে গত ৮ অক্টোবর থেকে ধারাবাহিকভাবে বিভাগীয় সব শহরে সমাবেশ থেকে ১০ ডিসেম্বর শনিবার রাজধানীতে সমাবেশ ঘিরে রাজনীতিতে উত্তাপের মধ্যে বুধবার নয়াপল্টন ঘিরে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল।

বিএনপি এই সমাবেশটি করতে চায় নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে। তবে পুলিশ অনুমতি দিয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। কিন্তু সেখানে যেতে চায় না তারা। বিকল্প হিসেবে মৌখিকভাবে আরামবাগে জমায়েতের প্রস্তাব দিলেও তা মৌখিকভাবেই নাচক করে পুলিশ।

দুপুরের আগে সংবাদ সম্মেলনে এসে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, তাদের সমাবেশ নয়াপল্টনেই হবে। পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, তাদের কাজ তারা করবেন।

আগের রাত থেকেই নয়াপল্টনে অবস্থান নিতে থাকেন বিএনপির নেতা-কর্মীরা। সকাল থেকে ট্রাকে অস্থায়ী মঞ্চ বানিয়ে চলতে থাকে বক্তব্য। দুপুরের দিকে সামনের সড়কে নেতা-কর্মীরা ‍পূর্ণ হয়ে যাওয়ার পর পুলিশ দেয় বাধা। শুরু হয় সংঘর্ষ পাল্টাপাল্টি ধাওয়া।

সকাল থেকে সেখানে উপস্থিত শখানেক পুলিশ সদস্য যখন পেরে উঠছিলেন না, তখন বেলা আড়াইটার দিকে ডাকা হয় অতিরিক্ত পুলিশকে। সাঁজোয়া গাড়িসহ আরও শ দুয়েক পুলিশ ঘটনাস্থলে আসার পর কাঁদানে গ্যাস, রাবার বুলেট ছুড়তে থাকে তারা।

বেলা পৌনে তিনটার দিকে আসে পুলিশের বিশেষায়িত বাহিনী সোয়াট। তবে তারা এসে অ্যাকশনে না গিয়ে টহল দিতে থাকে। অবশ্য তারা আসার আগেই পরিস্থিতি অনেকটা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

তবে পুলিশ যখন অ্যাকশনে ছিল তখন আহত অবস্থায় বেশ কয়েকজনকে হাসপাতালে যেতে দেখা যায়। পরে এদের একজনের মৃত্যুও হয় হাসপাতালে।

সংঘর্ষ শুরুর পর অসংখ্য নেতা-কর্মীর সঙ্গে আহতরাও বিএনপি পার্টি অফিসের ভেতরে অবস্থান নেন। সে সময় পুলিশের সদস্যরা কার্যালয়ের ভেতর কাঁদানে গ্যাসের কয়েকটি শেল ছোড়ে।

বিএনপি কর্মীরা দাবি করেন, ভেতরে অবস্থান নেয়া অন্তত ১৫ থেকে ২০ জন আহত ছিলেন। কাঁদানে গ্যাসের কারণে তাদের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

তখন বিএনপির পক্ষ থেকে চারটি অ্যাম্বুলেন্স আনা হয় আহতদের সরিয়ে নিতে। কিন্তু গাড়িগুলো নয়াপল্টন কার্যালয়ের সমানে এলে সেগুলোকে দাঁড়াতে দেয়নি পুলিশ। তাদের বাধায় দুটি অ্যাম্বুলেন্স ফিরে যায়। এরপর পুলিশ সদস্যদের আবার দলীয় কার্যালয়ের ভেতর কাঁদানে গ্যাস ছুড়তে দেখা যায়।

আহতদের নিয়ে যেতে অ্যাম্বুলেন্সকে বাধা দেয়া এবং দলীয় কার্যালয়ে আবদ্ধ পরিবেশে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ার বিষয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তাদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
রিজভী, ইশরাকের পর এবার সোহেলকে গ্রেপ্তারে পরোয়ানা
পুলিশের কাজ পুলিশ করবে, সমাবেশ নয়াপল্টনেই: বিএনপি
খুলনায় বিএনপির গ্রেপ্তার নেতা-কর্মী বেড়ে ৫৫
১৫০০ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তারের অভিযোগ বিএনপির
দ্বিধা নয়, ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ হবেই: ফখরুল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Blast in A League meeting in Pirojpur 3 leaders of BNP arrested

পিরোজপুরে আ.লীগের সভায় বিস্ফোরণ, বিএনপির ৩ নেতা আটক

পিরোজপুরে আ.লীগের সভায় বিস্ফোরণ, বিএনপির ৩ নেতা আটক ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা অবিস্ফারিত ককটেল। ছবি: নিউজবাংলা
মামলার বাদী ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল বাশার বাদশা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মামলার বিষয়ে আমি এখনও ভালো করে কিছু জানি না। শুনেছি মামলা হয়েছে। আমি বিস্তারিত জেনে আপনাকে জানাবো। এখন কিছু বলতে চাচ্ছি না।’

পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী ও কাউখালী উপজেলায় ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় দুই উপজেলার তিন বিএনপি নেতাকে আটক করা হয়েছে।

ইন্দুরকানী থানা সূত্র জানিয়েছে, মঙ্গলবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার বালিপাড়া বাজারে স্থানীয় আওয়ামী লীগের একটি সভায় ৫টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। পরে ইন্দুরকানী থানা পুলিশ ও ডিবি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অবিস্ফারিত আরও ৭টি ককটেল উদ্ধার করে।

ইন্দুরকানী থানার ওসি এনামূল হক বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের পথসভা বানচাল করতে এবং নাশকতা সৃষ্টির উদ্দেশে একটি পক্ষ এ ঘটনা ঘটিয়েছে। এ ঘটনায় বালিপাড়া ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল বাশার বাদশা ৭৫ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেছেন।’

এই মামলায় ইতোমধ্যে ইন্দুরকানী উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক ফরিদ আহম্মেদ ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব মো. জুয়েলকে আটক করা হয়েছে।

তবে মামলার বাদী ইউনিয়ন শ্রমিক লীগের সভাপতি আবুল বাশার বাদশা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মামলার বিষয়ে আমি এখনও ভালো করে কিছু জানি না। শুনেছি মামলা হয়েছে। আমি বিস্তারিত জেনে আপনাকে জানাবো। এখন কিছু বলতে চাচ্ছি না।’

বিস্ফোরণের বিষয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যডভোকেট মতিউর রহমান জানান, ঘটনার সময় তিনি উপজেলায় ছিলেন না। জেলা সদরে কাজে ছিলেন। ককটেল বিস্ফারণের কথা নেতা-কর্মীদের মাধ্যমে জানতে পেরেছেন।

এদিকে জেলার কাউখালী উপজেলায়ও মঙ্গলবার রাতেই একাধিক ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে।

কাউখালী থানার ওসি বনি আমিন জানান, উপজেলার শিয়ালকাঠী ইউনিয়নের চৌরাস্তা এলাকায় আনুমানিক রাত সাড়ে ১০টার দিকে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। পরে ঘটনাস্থলের আশপাশ থেকে অবিস্ফারিত আরও ৪টি ককটেল উদ্ধার করে পুলিশ।

ওসি বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে নাশকতা সৃষ্টির উদ্দেশে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। মামলার প্রস্তুতি চলছে। সন্দেহভাজন এক যুবদল নেতাকে আটকও করা হয়েছে। আটক শরিফুল আজম সোহেল কাউখালী উপজেলা যুবদলের সদস্য সচিব।’

স্থানীয়রা জানান, পিকআপ ভ্যান থেকে চলতি পথে গাড়ি থামিয়ে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে দ্রুত স্থান ত্যাগ করে দুস্কৃতকারীরা। এতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। কে বা কারা এটি ঘটিয়েছে কেউ বলতে পারছে না।

আরও পড়ুন:
ককটেল ফাটিয়ে কৃষক লীগের সম্মেলন পণ্ড
নয়াপল্টনে ককটেল বিস্ফোরণ
বিসিক এলাকায় ককটেলসহ গ্রেপ্তার ৪
বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল, আহত পুলিশ
বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল হামলার অভিযোগ

মন্তব্য

p
উপরে