× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
12 demands of shop employees including formation of wage board
hear-news
player
google_news print-icon

মজুরি বোর্ড গঠনসহ ১২ দাবি দোকান কর্মচারীদের

মজুরি-বোর্ড-গঠনসহ-১২-দাবি-দোকান-কর্মচারীদের
মজুরি বোর্ড গঠনের দাবি জানিয়েছেন দোকান কর্মচারীরা। ছবি: নিউজবাংলা
জাতীয় দোকান কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল হক আমিন বলেন, ‘দেশের ৪২টি শিল্প খাতের মধ্যে অনেকগুলোতেই নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। কিন্তু দোকান-কর্মচারীদের জন্য এখন পর্যন্ত নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়নি। অবিলম্বে এই বোর্ড গঠন করতে হবে।’

দোকান কর্মচারীদের জন্য মজুরি বোর্ড গঠনের দাবি জানিয়েছে দোকান কর্মচারী ফেডারেশন। সেই সঙ্গে সব দোকান কর্মচারীকে নিয়োগপত্র দেয়া, রাত ৮টায় দোকান বন্ধসহ ১২ দফা দাবি জানিয়েছে সংগঠনটি।

রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে রোববার সকালে এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এসব দাবি জানায় সংগঠনটি।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, সারা দেশে ৬০ লাখ দোকান কর্মচারী আছেন। বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের জন্য সরকারের নির্দেশনা হলো রাত ৮টায় দোকান বন্ধ করা। কিন্তু দোকান মালিক সমিতি সরকারি এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে রাত ৯টা পর্যন্ত দোকান খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় দোকান কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আমিরুল হক আমিন বলেন, ‘দোকান মালিক সমিতির এটি অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত এবং এটি সরকারি নির্দেশনাবিরোধী। আমরা সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রাত ৮টায় সব দোকানপাট বন্ধ করার দাবি জানাই। সরকারের নির্দেশনা অনুযায়ী চলতে চাই।’

তিনি বলেন, ‘দেশের ৪২টি শিল্প খাতের মধ্যে অনেকগুলোতেই নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়েছে। কিন্তু দোকান-কর্মচারীদের জন্য এখন পর্যন্ত নিম্নতম মজুরি বোর্ড গঠন করা হয়নি। অবিলম্বে এই বোর্ড গঠন করতে হবে।’

ফেডারেশনের নেতাদের অন্য দাবিগুলো হলো:

১. সব দোকান কর্মচারীকে কর্তৃপক্ষের স্বাক্ষরযুক্ত পরিচয়পত্র দিতে হবে।
২. দোকান কর্মচারীদের আইন অনুযায়ী সাপ্তাহিক দেড় দিন ছুটি দিতে হবে।
৩. প্রতি মাসের ৭ তারিখের মধ্যে বেতন ভাতা পরিশোধ করতে হবে।
৪. দোকান কর্মচারীদের দুই ঈদে বেতনের সমপরিমাণ টাকা বোনাস হিসেবে দিতে হবে।
৫. দোকান কর্মচারীদের অতিরিক্ত কাজের জন্য ওভারটাইম ভাতা দিতে হবে।
৬. কোনো দোকান কর্মচারী অবসরে গেলে শ্রম আইন অনুযায়ী সব পাওনা পরিশোধ করতে হবে।
৭. দোকান কর্মচারীদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসা খরচ দিতে হবে।
৮. সব দোকানে শ্রম আইন বাস্তবায়ন করতে হবে।
৯. কোনো দোকান কর্মচারী দুর্ঘটনার শিকার হলে মালিককে চিকিৎসার ব্যয়ভার বহন করতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় দোকান কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতা হযরত আলী মোল্লা, কামরুল হাসান, এম এ গনি, মো. রফিকুল ইসলাম, ফরিদুল ইসলাম, বাবুল ব্যাপারী, মো. জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
If Khaleda Zia comes to the rally the information given in the release application will be false

মুক্ত মানুষকে কীভাবে জামিন দেয়: আইনমন্ত্রী

মুক্ত মানুষকে কীভাবে জামিন দেয়: আইনমন্ত্রী নারায়ণগঞ্জ বার ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ছবি: নিউজবাংলা
খালেদা জিয়ার মুক্তির দুই শর্তের মধ্যে উনি রাজনীতি করতে পারবেন না এমন কথা নেই। কিন্তু উনার যে আবেদন ছিল তাতে পরিষ্কারভাবে লেখা ছিল তার শারীরিক অবস্থা এত খারাপ যে তিনি চলাফেরা করতে পারেন না।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশে বেগম খালেদা জিয়া অংশ নেবেন বলে শোনা যাচ্ছে। তবে তিনি যদি সমাবেশে আসেন, তাহলে তার মুক্তির আবেদনে দেয়া অসুস্থতার তথ্য মিথ্যা প্রমাণিত হবে।

বৃহস্পতিবার রাতে নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির বার ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, 'বিএনপি নেতারা এখনও দাবি করেন খালেদা জিয়াকে জামিন দিতে হবে। কিন্তু মুক্ত মানুষকে কীভাবে জামিন দেয়? দুই শর্তে খালেদা জিয়াকে জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছে। তাকে আবার জামিন কীভাবে দেবে?

‘বিএনপি নেতারা বলছেন, ১০ ডিসেম্বর বেগম খালেদা জিয়া বক্তব্য দেবেন। তার মুক্তির দুই শর্তে উনি রাজনীতি করতে পারবেন না এমন কথা নেই। কিন্তু উনার যে আবেদন ছিল তাতে পরিষ্কারভাবে লেখা ছিল খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা এত খারাপ যে তিনি চলাফেরা করতে পারেন না। তাকে দ্রুত মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। বেগম খালেদা জিয়া যদি ১০ ডিসেম্বর সমাবেশে যান তাহলে তার মুক্তির আবেদনে যে তথ্য দেয়া হয়েছে, তা মিথ্যা প্রমাণিত হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০০৭ ও ২০০৮ সালে যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছিল, তখন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দুটির বেশি দুর্নীতির মামলা হয়। তদন্ত করা হয়, এফআইআর হয়, চার্জশিটও হয়। প্রতিটি সময়ই খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন। তারা শুধু নিম্ন আদালতে না, যেতে যেতে আপিল বিভাগেও গিয়েছেন। সেখান থেকে বলে দিয়েছে, বিচারিক আদালত হয়ে মামলা শেষ করতে হবে।

’বিচারিক আদালতে বিচার হয়েছে, সাজাও হয়েছে। একটি মামলায় পুনরায় আপিল করেছেন, সেটাতে আবার হাইকোর্ট সাজা বাড়িয়েছে। আরেকটিতে বিচারিক আদালত সাজা দিয়েছে। তারপরে তিনি জেলে গেছেন। জেলে থাকাকালে তার পরিবার থেকে আবেদন করা হয়েছে, সেখানে বলা হয়- তার শরীর অত্যন্ত খারাপ। তাকে জেল থেকে ছাড়িয়ে চিকিৎসা করাতে হবে। আইনি প্রক্রিয়ার তাকে জেল থেকে ছাড়ার প্রার্থনা করা হয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মহানুভবতায়, ৪০৮ ধারায় দণ্ডাদেশ স্থগিত করেছেন। দুই শর্তে তাকে মুক্তি দিয়েছেন।’

অনুষ্ঠানে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম সারওয়ার, অ্যাটর্নি জেনারেল আবু মোহাম্মদ আমিন উদ্দিন, সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান, একেএম শামীম ওসমান, লিয়াকত হোসেন খোকা, জেলা প্রশাসক মো. মঞ্জুরুল হাফিজ ও জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বিএনপির ষড়যন্ত্র সফল হলে দেশ বিরান ভূমি হবে: আইনমন্ত্রী
সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম থাকবে কি না চিন্তাভাবনা হচ্ছে: আইনমন্ত্রী
খালেদার নির্বাচনে অংশ নেয়ার সুযোগ নেই: আইনমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
College student killed by gang of teenagers in Comilla

কু‌মিল্লায় কিশোর গ্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র নিহত

কু‌মিল্লায় কিশোর গ্যাংয়ের ছুরিকাঘাতে কলেজছাত্র নিহত কলেজ শিক্ষার্থী মো. পাবেল। ছবি: সংগৃহীত
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, কলেজ ছাত্র পাবেল সঙ্গীদের নিয়ে রাতে ব্যাডমিন্টন খেলতে যান। এ সময় একদল কিশোর তাদেরকে মাঠ থেকে উঠে যেতে বলে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তারা পাবেলকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ব্যাডমিন্টন খেলাকে কেন্দ্র করে কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় মো. পাবেল নামে এক কলেজ শিক্ষার্থী খুন হয়েছেন।

চৌদ্দগ্রামের আলকরায় রাত ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শুভরঞ্জন চাকমা।

নিহত পাবেল উপজেলার গুণবতী এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে। তিনি ফেনী মহিপাল সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, পাবেল নিজ বাড়ি গুণবতী থেকে পাশের আলকরা ইউনিয়নে নানা বাড়িতে বেড়াতে যান। সেখানে স্থানীয় কিশোরদের সঙ্গে রাতে ব্যাডমিন্টন খেলতে যান তিনি। এ সময় একদল কিশোর নিজেরা খেলবে বলে পাবেল ও তার সঙ্গীদের মাঠ থেকে উঠে যেতে বলে। ওইসময় কিশোরদের সঙ্গে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তারা এলোপাতাড়ি পাবেলকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আরও দুজন আহত হন। তারা বিভিন্ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেবা চিকিৎসাধীন বলে জানা গেছে।

ওসি শুভরঞ্জন চাকমা জানান, বাকবিতণ্ডার একপর্যায়ে তারা পাবেলকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করেছে বলে স্থানীয়রা জা‌নি‌য়ে‌ছে। জড়িত সবাই স্থানীয় কিশোর। ঘটনার পর থে‌কে তারা পলাতক। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কু‌মিল্লা মে‌ডি‌কেল ক‌লেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বীমার টাকার জন্য স্ত্রীকে খুন
বড় ভাই খুন, অভিযোগ ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে
আফতাবকে বহনকারী পুলিশ ভ্যানে তরবারি হামলা
সন্তানকে নিয়ে স্বামীকে ১০ টুকরা করে ফ্রিজে
শ্রদ্ধার মরদেহ ফ্রিজে রেখেই ডেটিংয়ে আফতাব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Dhaka Metropolitan Chhatra League conference today

ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ

ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের সম্মেলন আজ
ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের মাধ্যমে ছাত্রলীগের সম্মেলনের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। পরদিন শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা এবং ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন।

ঢাকা মহানগর ছাত্রলীগের দুই অংশের সম্মেলন শুক্রবার। সকাল ১০টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই সম্মেলন হবে।

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের মাধ্যমে ছাত্রলীগের সম্মেলনের প্রক্রিয়া শুরু হচ্ছে। পরদিন শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা এবং ৬ ডিসেম্বর হবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলন।

তবে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের সম্মেলনের দিন কমিটি ঘোষণা করা হবে না বলে আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সম্মেলনের পর কেন্দ্রীয় সম্মেলনের দিন সব কমিটি একযোগে ঘোষণা করা হবে।

রাজধানী ঢাকার ছাত্র রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ দুই শাখা ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ ছাত্রলীগের সম্মেলন ঘিরে উজ্জীবিত সংগঠনের নেতাকর্মীরা। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ ঘিরে বিরাজ করছে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। শীর্ষ পদ নিজের অনুকূলে নিশ্চিত করতে মরিয়া পদপ্রত্যাশীরা।

ছাত্রলীগের মহানগর নেতাদের সূত্রে জানা য়ায়, অন্যবারের তুলনায় এবার মহানগর উত্তর ও দক্ষিণে শুধু সভাপতি-সম্পাদক পদে প্রার্থীর সংখ্যা অনেক বেশি। মহানগরের বেশিরভাগ থানা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকরাও এবার মহানগরের শীর্ষ পদ পাওয়ার দৌড়ে রয়েছেন।

ঢাকা মহানগর ভাগ হওয়ার পর থেকে নেতৃত্ব বাছাইয়েও নানা পক্ষ তৈরি হয়েছে। মহানগর উত্তরে শীর্ষ নেতৃত্ব বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কথিত রয়েছে দুই সিন্ডিকেটের নাম। একটি ‘ধানমণ্ডি বেল্ট’, অন্যটি ‘মিরপুর বেল্ট’।

ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের দ্বারা পরিচালিত হয় কথিত এই দুটি সিন্ডিকেট। উত্তর ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে কারা আসবেন তাও দুই সিন্ডিকেট নেতারা বাছাই করতেন। যদিও এবার সেই সুযোগ তারা পাবেন না বলেই মনে করা হচ্ছে। কেননা কমিটি দেবেন অভিভাবক সংগঠন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মহিলা লীগ এবং স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের ধারাবাহিকতায় ছাত্রলীগেও স্বচ্ছ, বিকর্তমুক্ত এবং যোগ্যতমদের দিয়ে কমিটি করা হবে বলে আলোচনা আছে।

ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদের দৌড়ে আলোচনায় রয়েছে বেশকিছু নেতার নাম। তাদের মধ্যে মহানগর উত্তরে রয়েছেন- আদাবর থানার সভাপতি রিয়াজ মাহমুদ, বর্তমান কমিটির প্রচার সম্পাদক জুয়েল পোদ্দার রানা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তৌহিদুজ্জামান নোবেল, সাইফ হোসেন রুমান, আফসান নাদিয়ান, মারুফ হোসেন মিঠু, পলিটেকনিকের সভাপতি মেহেদি হাসান, কাজী মিজান, আসাদুজ্জামান আল গালিব (মিরপুর কলেজ সভাপতি), আকরাম হোসেন, দপ্তর সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, সংস্কৃতিবিষয়ক সম্পাদক আশিক ইকবাল, উত্তরের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক সালমান খান প্রান্ত, ধানমণ্ডি থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উত্তর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিবুল ইসলাম বাপ্পি।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণে শীর্ষ পদে আলোচনায় আছেন- বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি ও রমনা থানা শাখার সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবীব হাসান, বারেক হোসাইন আপন, মাজেদুল মোল্লা মিন্টু, সাব্বির আহমেদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম মিরাজ, ইয়াসিন আরাফাত, সাংগঠনিক সম্পাদক হাসিবুল আলম পুলক, রফিকুল ইসলাম রাছেল, সমাজসেবা সম্পাদক সৈয়দ মুক্তাদির সাদ, প্রচার সম্পাদক রিয়াজ মোল্লা, গণশিক্ষা বিষয়ক উপ-সম্পাদক আল-নোমান সরকার অনিক, উপ-সম্পাদক নুরুদীন হাওলাদার ও সবুজবাগ থানা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মেজবাহ উদ্দিন পাভেল।

ছাত্রলীগের সমন্বয়কের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘সাংগঠনিক দক্ষতাসম্পন্ন, সৎচরিত্র, ছাত্রসমাজের মাঝে গ্রহণযোগ্য ও পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সংশ্লিষ্ট- এমন নেতাই সম্মেলনের মাধ্যমে বাছাই করা হবে। বয়সের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক অভিভাবক আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।’

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগের মোটরসাইকেল বহরে ককটেল হামলা
এমপির ছেলের সভায় ককটেল বিস্ফোরণ
ঢাবি ছাত্রলীগের সম্মেলন ৩ ডিসেম্বর, দুই মহানগরের ২ ডিসেম্বর
পিছিয়ে গেল ছাত্রলীগের সম্মেলন
ছাত্রলীগে ‘কাগুজে’ কমিটি আর নয়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
City residents are angry at the A League rally blocking the road

সড়কে আ.লীগের মঞ্চ, ক্ষোভ নগরবাসীর

সড়কে আ.লীগের মঞ্চ, ক্ষোভ নগরবাসীর
ঘুরে যেতে রিকশাওয়ালাকে বাড়তি টাকা দিতে হয়েছে জানিয়ে বাধ রোড এলাকার হুমায়রা বেগম বলেন, ‘আমাদের মেয়র কেন তার নগরবাসীর জন্য ভোগান্তির সৃষ্টি করলেন বুঝতে পারলাম না। এই স্টেজ তো কোনো মাঠেও করা যেত।’

বরিশাল নগরীতে নগর ভবনের সামনের রাস্তা আটকে পার্বত্য শান্তি চুক্তি দিবস উদযাপনের জন্য মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত এই সমাবেশ হবে শুক্রবার বিকেলে। এ জন্য রাস্তার উপর মঞ্চ তৈরির কাজ শুরু হয় বুধবার রাত থেকে।

গুরুত্বপূর্ণ সড়ক আটকে এই আয়োজনের কারণে বিকল্প পথ ব্যবহারে ভোগান্তি হচ্ছে জানিয়ে ক্ষুব্ধ নগরবাসী।

ঘটনাস্থলে বৃহস্পতিবার সন্ধ‌্যায় গিয়ে দেখা গেছে, পার্বত‌্য শান্তি চুক্তির ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সমাবেশের মঞ্চ তৈরির কাজ শেষ পর্যায়ে। প্রশস্ত সড়কটি আটকে মঞ্চ তৈরি করায় যান চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।

অটোরিকশাচালক মাইনুল হোসেন বলেন, ‘মানুষের তো কমন সেন্স থাকে ভাই। পুরো রাস্তা আটকে মঞ্চ করছে। যাত্রীরা তো অনেক ঝামেলায় পড়ে গেছে। পুলিশ অন‌্য পথ দিয়ে যেতে বলে। অনেক ঘোরা লাগে।

‘যেখানে মঞ্চ করেছে, সেখান থেকে লঞ্চ ঘাট ৩ মিনিটের পথ। কিন্তু ঘুরে অন‌্য পথ দিয়ে যেতে অনেক সময় লাগে। যাত্রীরা ঘুরতে চায় না।’

সড়কে আ.লীগের মঞ্চ, ক্ষোভ নগরবাসীর

ওষুধ বিক্রেতা ইমদাদুল হক মাসুম বলেন, ‘মোটরসাইকেল নিয়ে বিআরটিএ অফিস যাচ্ছিলাম। সিটি করপোরেশনের সামনে এসে দেখি রাস্তা বন্ধ। স্টেজ করছে। তারপর ঘুরে বরিশাল ক্লাবের সামনে দিয়ে বিআরটিএ অফিসে গেছি।

‘এমনভাবে স্টেজ করেছে যে একটা মোটরসাইকেলও যেতে পারে না। আওয়ামী লীগের নেতাদের এ কেমন চিন্তা ভাবনা বুঝি না।’

কলেজ শিক্ষক মোশাররেফ হোসেন বলেন, ‘এই সড়কটাতে ফায়ার সার্ভিস আছে। কোনো ধরণের দুর্ঘটনা যদি ঘটে তাহলে তো এই সড়ক হয়েই বের হতে হবে। এখন কি তারা বাইপাস সড়ক দিয়ে ঘুরে বের হবে?

‘এই সড়ক হয়ে লঞ্চঘাট, পোস্ট অফিস, সিটি করপোরেশন, ডিসি অফিস, বিআরটিএ অফিস, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসসহ গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে সপ্তাহের শেষ দিনে যেতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে। যেমন আমারই ডিসি অফিসে কাজ ছিল। রিকশা নিয়ে প্রথমে নগর ভবনের সামনের সড়কে গেলেও, পরে ঘুরে যেতে হয়েছে।’

সড়কে আ.লীগের মঞ্চ, ক্ষোভ নগরবাসীর

ঘুরে যেতে রিকশাওয়ালাকে বাড়তি টাকা দিতে হয়েছে জানিয়ে বাধ রোড এলাকার হুমায়রা বেগম বলেন, ‘আমাদের মেয়র কেন তার নগরবাসীর জন‌্য ভোগান্তির সৃষ্টি করলেন বুঝতে পারলাম না। এই স্টেজ তো কোনো মাঠেও করা যেত।’

এ বিষয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বরিশাল জেলা পরিষদ চেয়ারম‌্যান একেএম জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘হাজী মোহাম্মদ মহসিন মার্কেটের নাম যে পাল্টেছে তা চোখে পড়ে না। আর রাস্তাটা যে একটু আটকেছে তা চোখে পড়েছে?’

সড়ক আটকে সমাবেশের অনুমতির বিষয়ে জানতে বরিশাল মহানগর পুলিশের দক্ষিণ জোনের উপ কমিশনার আলী আশরাফ ভূঞা জানান, তিনি অনুমতির বিষয়ে অবগত নন।

তবে পুলিশ কমিশনার সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘অনুমতির জন‌্য চিঠি দেয়া হয়েছিল। অনুমতি দেয়া হয়েছে নগর ভবনের সামনের সড়কে সমাবেশ করার জন‌্য।’

আরও পড়ুন:
রাজশাহীতে পরিবহন ধর্মঘটে ভোগান্তি
পরিবহন ধর্মঘটের আগেই রাজশাহীর সমাবেশে নেতা-কর্মীরা
সকাল থেকে রাজশাহী বিভাগে পরিবহন ধর্মঘট
ষড়যন্ত্র রুখতে ঐক্যবদ্ধের ডাক শেখ সেলিমের
শিক্ষককে লাঞ্ছনার মামলায় আ.লীগ নেতা কারাগারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police in 15 day special operation

১৫ দিনের বিশেষ অভিযানে পুলিশ

১৫ দিনের বিশেষ অভিযানে পুলিশ
আবাসিক হোটেল, মেস, হোস্টেল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি সেন্টারসহ অপারাধীদের লুকিয়ে থাকার সম্ভাব্য স্থানগুলোতে কার্যকর অভিযান পরিচালনা করতে হবে বলে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পলাতক জঙ্গিসহ অপরাধী গ্রেপ্তারে দেশব্যাপী বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে। পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া অভিযান চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে ২৯ নভেম্বর চিঠি দিয়ে বিভিন্ন ইউনিটকে ১ ডিসেম্বর থেকে এ অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেয়া হয়।

পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. হাসানুজ্জামানের সই করা চিঠিতে বলা হয়, মহান বিজয় দিবস, বড়দিন ও থার্টিফাস্ট নাইট উদযাপন নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে সারাদেশে বিশেষ অভিযান চালানোর নির্দেশনা দেয়া হলো।

দেশের সব পুলিশ ইউনিটের প্রধান ও সব জেলার পুলিশ সুপারকে এ চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, ২০ নভেম্বর ঢাকা সিএমএম আদালত এলাকায় পুলিশ হেফাজত থেকে দণ্ডপ্রাপ্ত ২ জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার প্রেক্ষাপট বিবেচনা, মহান বিজয় দিবস, বড়দিন এবং থার্টিফাস্ট নাইট উদযাপন নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে চলমান অভিযানের পাশাপাশি ১-১৫ ডিসেম্বর বিশেষ অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আবাসিক হোটেল, মেস, হোস্টেল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি সেন্টারসহ অপারাধীদের লুকিয়ে থাকার সম্ভাব্য স্থানগুলোতে কার্যকর অভিযান পরিচালনা করতে হবে বলে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিশেষ এ অভিযানে জঙ্গি, সন্ত্রাসী, মাদকসেবী ও কারবারি, অবৈধ অস্ত্রধারী, ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি গ্রেপ্তারসহ মাদক ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার হবে বলে আশা করছেন কর্মকর্তারা।

বিশেষ অভিযানে গ্রেপ্তার ও মামলার বিস্তারিত তথ্য নির্ধারিত ছকের মাধ্যমে একীভূত করে প্রতিদিনের তথ্য পরের দিন সকাল ১০টার মধ্যে ফ্যাক্সযোগে এবং ই-মেইলে পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিভিন্ন ইউনিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের।

আরও পড়ুন:
বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল হামলার অভিযোগ
মেয়ের বান্ধবীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রামপুলিশ আটক
ছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যা: পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি আদালত
বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে মামলা, ৬৬ নেতা-কর্মী আসামি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Cocktail injured police from BNP procession

বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল, আহত পুলিশ

বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল, আহত পুলিশ
উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব হাফিজুল ইসলাম খান বলেন, ‘এ ঘটনা সম্পর্কে আমাদের জানা নেই। এ ঘটনা মিথ্যা ও গুজব।’

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে ঢাকা-দোহার বাইপাস সড়কে দুর্বৃত্তদের মারধরে আহত হয়েছেন থানার এসআই মো. সাইফুল। এসময় রাস্তায় ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে, আগুন দেয়া হয়েছে একটি মোটরসাইকেলে।

পুলিশ বলছে, বিএনপি নেতা-কর্মীরা এই হামলা চালিয়েছে।

শ্রীনগরের কুশরীপাড়া গ্রামের বাইপাস সড়ক মোড়ে বৃহস্পতিবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

আহত এসআই সাইফুলকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

শ্রীনগর থানার ওসি মো. আমিনুল ইসলাম জানান, কারাবন্দি দলীয় নেতা-কর্মীদের মুক্তির দাবিতে রাতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে স্থানীয় বিএনপি। মিছিলটি ঢাকা-দোহার বাইপাস সড়কের মোড়ে পৌঁছলে বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। মিছিলে থাকা লোকজন একটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়, দুটি অটো ভাঙচুর করা হয়।

ওসি আরও জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে গেলে এসআই সাইফুলকে মারধর করে হামলাকারীরা।

এসব সত্য নয় জানিয়ে উপজেলা বিএনপির সদস্য সচিব হাফিজুল ইসলাম খান বলেন, ‘এ ঘটনা সম্পর্কে আমাদের জানা নেই। এ ঘটনা মিথ্যা ও গুজব।’

আরও পড়ুন:
সমাবেশ ঘিরে অপরাজনীতি হলে রাজপথেই জবাব: মেয়র লিটন
জামিন পেলেন বিএনপি নেতা সাবেক এমপি নাদিম
‘ধর্মঘটে মিডিয়ায় বাড়তি প্রচার পাচ্ছে বিএনপি’
কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে ৪ ধর্মগ্রন্থ, রাজশাহীতে কী?
সমাবেশ কোথায় হবে তা সময়ই বলে দেবে: আব্বাস

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There is no use calling for the fall of the government Obaidul Quader

সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে লাভ নেই: ওবায়দুল কাদের

সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে লাভ নেই: ওবায়দুল কাদের বৃহস্পতিবার দুপুরে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বক্তব্য দেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছবি: নিউজবাংলা
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি বিএনপিকে আবারও বলতে চাই, নির্বাচনে আসুন। ফখরুল সরকারকে বলেছেন- নিরাপদ প্রস্থান নিতে। আমি বলতে চাই, নিরাপদ প্রস্থানের একমাত্র পথ নির্বাচন। নির্বাচনেই প্রমাণ হবে, কারা বিজয়ী আর কাদের পতন হবে। সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে কোনো লাভ নেই।’

বিএনপিকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে কোনো লাভ নেই। নির্বাচনেই প্রমাণ হবে, কারা জয়ী আর কাদের পতন হবে।’

বৃহস্পতিবার দুপুরে গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমি বিএনপিকে আবারও বলতে চাই, নির্বাচনে আসুন। ফখরুল সরকারকে বলেছেন- নিরাপদ প্রস্থান নিতে। আমি বলতে চাই, নিরাপদ প্রস্থানের একমাত্র পথ নির্বাচন। নির্বাচনেই প্রমাণ হবে, কারা বিজয়ী আর কাদের পতন হবে। সরকার পতনের হাঁকডাক দিয়ে কোনো লাভ নেই।’

বিএনপির উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘অপেক্ষা করুন, নির্বাচনে খেলা হবে। ডিসেম্বরেই খেলা হবে। বিএনপির আগুন আর লাঠির বিরুদ্ধে খেলা হবে। আগুন আর লাঠি নিয়ে এলে খেলা হবে। দুর্নীতির বিরুদ্ধে, ভোট চুরির বিরুদ্ধে, ভুয়া ভোটার তালিকার বিরুদ্ধে খেলা হবে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মির্জা ফখরুল এখন নাটক শুরু করছেন। নাটক কি? কোথাও সমাবেশ দিলে ৭ দিন আগে থেকে মিথ্যাচার করেন,বাধা দেয়া হচ্ছে। সরকার বাধা দিচ্ছে। আর কাঁথা-বালিশ, হাঁড়ি-পাতিলের পর চালের বস্তা সঙ্গে টাকার বস্তা আর মশার কয়েল নিয়ে সমাবেশস্থলে আসে। কুমিল্লাতে তো কেউ বাধা দেয়নি।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। উনারা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে স্বাচ্ছন্দবোধ করছেন না। মুখে মধু আর অন্তরে বিষ- এরই নাম ফখরুল। ফখরুল সাহেব, অনুমতি দেয়া হয়েছে, আপনাদের মিটিংয়ে কেউ বাধা দেবে না। আমরা রাজশাহীতেও বলে দিয়েছি, সেখানে যেন পরিবহন ধর্মঘট না করে। ঢাকায়ও পরিবহন ধর্মঘট হবে না, নেত্রী বলে দিয়েছেন।’

সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘সমাবেশের অনুমতি দেয়ার পরও যদি বাড়াবাড়ি করেন, লাফালাফি করেন, আগুন নিয়ে নামেন, লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা লাগিয়ে মাঠে নামেন তাহলে খবর আছে। আমরা পাল্টাপাল্টি করবো না। আমরা শান্তি চাই। ক্ষমতায় থেকে আমরা অশান্তি কেন করবো। আমরা মানুষকে শান্তিতে রাখতে চাই। আমরা ক্ষমতায় আছি অশান্তি হলে তো সেখানে মাথা ঘামাতে হবে।’

কাদের আরও বলেন, ‘তারেক লন্ডনে বসে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে, মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। তাই তারেকের হাওয়া ভবনের অর্থ পাচারের বিরুদ্ধে খেলা হবে। সারা বাংলাদেশ থেকে কত টাকা পাচার করা হয়েছে শেখ হাসিনা তা খতিয়ে দেখছেন। সব টাকা উদ্ধার করা হবে। টাকা পাচারকারী তারেকসহ প্রত্যেকের টাকা উদ্ধার করা হবে।’

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি কোন রাজনৈতিক দল নয়। এ দলের সৃষ্টি ক্যান্টনমেন্টে। দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান সংবিধানকে হত্যা করেছেন। জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের জেল থেকে মুক্তি দিয়ে হত্যার রাজনীতি শুরু করেছিলেন।

‘বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য পাগল হয়ে গেছে। বেশি পাগলামী করলে পাবনায় পাগলা গারদে অথবা পাকিস্তানে পাঠিয়ে দেয়া হবে।’

সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুহাম্মদ ফারুক খান, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, এস.এম কামাল হোসেন, উপ-দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান, নার্গিস রহমান।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে মাহাবুব আলী খানকে সভাপতি ও জিএম সাহাব উদ্দিন আজমকে সাধারণ সম্পাদক করে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করেন শেখ সেলিম।

এ সময় তিনি কাজী লিয়াকত আলী লেকুকে সভাপতি ও আবু সিদ্দিক সিকদারকে সাধারণ সম্পাদক করে সদর উপজেলা কমিটি এবং গোলাম কবিরকে সভাপতি ও আলীমুজ্জামান বিটুকে সাধারণ সম্পাদক করে পৌর আওয়ামী লীগের কমিটিও ঘোষণা দেন।

আরও পড়ুন:
ডিসেম্বরকে কেন্দ্র করে অপশক্তি মাঠে নেমেছে: ওবায়দুল কাদের
খেলার নিয়ম ভঙ্গ করলে বিএনপির খবর আছে: কাদের
১০ ডিসেম্বর নিয়ে এখন ডিফেন্সিভ কেন: বিএনপিকে কাদের
বিএনপি সন্ত্রাসের পথে ফিরে যাবে: কাদের
টাকার বস্তা খালি, গলার জোর কমে ডিফেন্সিভ মুডে ফখরুল: কাদের

মন্তব্য

p
উপরে