× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Half a hundred militants can cause headaches
google_news print-icon

মাথাব্যথার কারণ হতে পারে ‘অর্ধ শতাধিক জঙ্গি’

মাথাব্যথার-কারণ-হতে-পারে-অর্ধ-শতাধিক-জঙ্গি
সম্প্রতি বান্দরবন ও রাঙ্গামাটিতে অভিযান চালিয়ে জঙ্গি সংগঠনের বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। ফাইল ছবি
হামলার মতো সম্ভাব্য বিষয় মাথায় রেখে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে পার্বত্যাঞ্চলের গহিন এলাকায় সেনাবাহিনী, র‍্যাব ও অন্যান্য বাহিনীর সমন্বয়ে যৌথ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে ঘরছাড়া ৫৫ জন এখনও নিখোঁজ। তারা এরই মধ্যে পার্বত্য এলাকায় বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের তত্ত্বাবধানে প্রশিক্ষণ নিয়েছে। এদের জন্য ভারী অস্ত্র কিনতে ১৭ লাখের বেশি টাকা জঙ্গি সংগঠনটির পক্ষ থেকে দেয়ার তথ্য পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী।

অভিযানে বেশ কিছু জঙ্গি গ্রেপ্তার ও তাদের দেয়া স্বীকারোক্তিতে এসব তথ্য উঠে এসেছে। র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এ কথা জানিয়েছেন।

‘হিজরতে’ বের হওয়া ৫০-এর বেশি জঙ্গির খোঁজ না পাওয়া, পার্বত্যাঞ্চলে প্রশিক্ষণ, ভারী অস্ত্র- এসব মিলিয়ে যেকোনো সময় যেকোনো ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছে র‌্যাব।

তবে হামলার মতো সম্ভাব্য বিষয় মাথায় রেখে সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে পার্বত্যাঞ্চলের গহিন এলাকায় সেনাবাহিনী, র‌্যাব ও অন্যান্য বাহিনীর সমন্বয়ে যৌথ অভিযান পরিচালিত হচ্ছে।

গত ৬ অক্টোবর থেকে মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, ময়মনসিংহ, যাত্রাবাড়ী, কেরানীগঞ্জ, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান এলাকায় চার দফায় অভিযান চালিয়ে নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার ২২ জনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। বৃহস্পতিবার কুমিল্লার লাকসামে অভিযান চালিয়ে গ্রেপ্তার করা হয় আরও চারজনকে।

এই ২৬ জনের মধ্যে সংগঠনের সূরা সদস্য, সামরিক শাখার শীর্ষ নেতা, অর্থবিষয়ক ও হিজরতবিষয়ক সমন্বয়ক রয়েছে। তবে ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছেন আরও অনেকে।

বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার হওয়া চারজন হলেন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার অর্থবিষয়ক প্রধান সমন্বয়ক মুনতাছির আহম্মেদ ওরফে বাচ্চু, সারা দেশে হিজরতরত সদস্যদের সার্বিক সমন্বয়ক আব্দুল কাদের ওরফে সুজন ওরফে ফয়েজ ওরফে সোহেল ও ইসমাইল হোসেন ওরফে হানজালা ওরফে মানসুর। আর সামরিক শাখার তৃতীয় সর্বোচ্চ ব্যক্তি হেলাল আহমেদ জাকারিয়া।

গ্রেপ্তার এই সদস্যদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পেয়েছে র‌্যাব। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে শুক্রবার কারওয়ান বাজারে মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে আসেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি জানিয়েছেন, গ্রেপ্তার হওয়া জঙ্গিরা এবং সংগঠনটির আমিরসহ দায়িত্বশীলরা সশস্ত্র সংগ্রামের প্রস্তুতি নিতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রশিক্ষণ গ্রহণে নতুনদের আগ্রহী করে তুলত। আব্দুল কাদের ওরফে সুজন ওরফে ফয়েজ ওরফে সোহেল ও ইসমাইল হোসেন ওরফে হানজালা ওরফে মানসুর সংগঠনটির আমির মাহমুদের একান্ত সহযোগী। সেই সুবাদে তারা সারা দেশে বাড়ি ছেড়ে যাওয়া সদস্যদের তাত্ত্বিক ও সশস্ত্র প্রশিক্ষণের জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে পাঠানোর কাজটি সমন্বয় করত। পটুয়াখালী, ভোলাসহ সমতলের বিভিন্ন এলাকায় প্রশিক্ষণ শেষে হিজরত করা ব্যক্তিদের কুমিল্লায় তাদের সেইফ হাউসে রাখা হতো।

র‌্যাব মুখপাত্র জানান, পরবর্তী সময়ে সুবিধাজনক সময়ে তারা নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পর্যটক বা অন্য ছদ্মবেশে পার্বত্যাঞ্চলে প্রশিক্ষণ শিবিরে পাঠাতেন। গত মার্চ-এপ্রিলের দিকে ১৭ জন এবং সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ১২ জন তরুণকে পর্যটকের ছদ্মবেশে বান্দরবানে পাঠিয়েছে তারা।

নতুন জঙ্গি সংগঠনের নাশকতার সম্ভাবনার বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাবের মুখপাত্র কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘জঙ্গিদের নাশকতার যে বিষয় রয়েছে, র‌্যাব ফোর্সেসের সব সময়ই প্রস্তুতি থাকে। আমরা ধরেই নিয়েছি, যেহেতু অনেকেই নিরুদ্দেশ, যেকোনো সময় যেকোনো ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। তবে আমরা প্রস্তুত রয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর অব্যাহত অভিযানের কারণে জঙ্গিবাদ এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, কিন্তু এটা নির্মূল হয়নি। আমরা কখনোই আত্মতুষ্টিতে ভুগি না, যেকোনো সময়ই যেকোনো স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে বা জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে তারা নাশকতা করতে পারে। এ ধরনের প্রস্তুতির কথা চিন্তা করেই আমরা অভিযান পরিচালনা করছি। এখনো আমাদের অনেক সদস্য পার্বত্যাঞ্চলে অভিযান পরিচালনা করছে।’

খোঁজ না পাওয়া অর্ধশতাধিক জঙ্গিকে নিয়ে মাথাব্যথার কারণ হিসেবে খন্দকার মঈন বলেন, ‘আমরা যে ৫৫ জনের তালিকা দিয়েছি, তাদের একজনকেও পাইনি। তারা কী পার্বত্য চট্টগ্রামের ভেতরে আছে নাকি বিভিন্নভাবে বেরিয়ে এসেছে। যেখানে প্রশিক্ষণ নিচ্ছিল তা গহিন বনাঞ্চল। যেখান থেকে পরিচয় গোপন করে যাওয়া-আসা অনেক সহজ। যখন যায়, তখন ট্যুরিস্ট হিসেবেই যায়। পার্বত্যাঞ্চলে অনেক অরক্ষিত বনাঞ্চল রয়েছে। যেখানে তারা বিভিন্নভাবে যেতে পারে।’

মাথাব্যথার কারণ হতে পারে ‘অর্ধ শতাধিক জঙ্গি’
র‌্যাবের অভিযানে উদ্ধার জঙ্গিদের অস্ত্র। ফাইল ছবি

জঙ্গিদের জন্য ভারী অস্ত্র কিনতে কুকি-চিন পেয়েছে ১৭ লাখ

জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার আশ্রয় প্রশিক্ষণ ও অস্ত্র দেয়ার কাজটি টাকার বিনিময়ে করছে পাহাড়ের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ‘কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট’–কেএনএফ। প্রতি মাসে ৩ লাখ টাকার বিনিময়ে জঙ্গিদের আশ্রয় ও প্রশিক্ষণ দিচ্ছে তারা।

গত ৮-৯ মাসে দুই দফায় একে-২২, একে-৩২-এর মতো ভারী অস্ত্র কেনার জন্য কুকি-চিনকে ১৭ লাখ টাকা দিয়েছে জঙ্গিরা।

র‌্যাব জানিয়েছে, গ্রেপ্তার বাচ্চুর মাধ্যমে তারা জানতে পেরেছেন বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের মোবাইল ব্যাংকিং ও ব্যাংকিং চ্যানেলে তারা অস্ত্র কেনার জন্য টাকা দিয়েছে। টাকা পাওয়ার পর পার্বত্য চট্টগ্রামে যারা প্রশিক্ষণ নিচ্ছে, র‌্যাব আনুমানিক ধরে নিয়েছে সংখ্যাটা ৫০-এর বেশি। তাদের তারা (কুকি-চিন) অস্ত্র সরবরাহ করেছে। এই অস্ত্রের মাধ্যমে তারা প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিরা ঠিক কী পরিমাণ অস্ত্র জঙ্গিদের কাছে রয়েছে, তার সংখ্যা জানাতে পারেনি। তবে বেশ কিছু অস্ত্র তাদের হাতে রয়েছে বলে জানিয়েছে। প্রশিক্ষণ ও নাশকতার জন্য যেগুলো ব্যবহৃত হতে পারে।

মাসে লাখ টাকা পর্যন্ত ডোনেশন পাচ্ছে জঙ্গিরা

র‌্যাবের গোয়েন্দা তথ্য ও গ্রেপ্তার আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদে বাহিনীটি জানতে পেরেছে জঙ্গি সংগঠনকে দেশের বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে এক হাজার থেকে শুরু করে এক লাখ টাকা পর্যন্ত ডোনেশন পেয়েছে।

ডোনার শাখা ক, খ ও গ ক্যাটাগরিতে জঙ্গিদের অর্থ জোগান দিচ্ছে দেশের ভেতরে থাকা অনেকে। তাদেরও তালিকা পেয়েছে র‌্যাব।

বাহিনীটি জানিয়েছে, ডোনার 'ক' ক্যাটাগরিতে ডোনাররা ১০ হাজার থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত প্রতি মাসে জঙ্গিদের দিয়ে থাকে। 'খ' ক্যাটাগরিতে ৩ হাজার থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত দেয়। আর 'গ' ক্যাটাগরিতে প্রতি মাসে ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত তারা দেয়।

কারা এই টাকা ডোনেট করছে, তাদের শনাক্তে র‌্যাব কাজ করছে। বাহিনীটি জানিয়েছে, ইতোমধ্যে কিছু নাম তারা পেয়েছে। এই ব্যক্তিরা নিজের টাকা জঙ্গিদের দিচ্ছে না দেশের বাইরে থেকেও কোনো সহায়তা আসছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
জঙ্গি সন্দেহে ‘ধূলিকণার মরীচিকা’ গ্রেপ্তার
আনসার আল ইসলামের ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Rickshaw driver arrested while casting fake vote in Kurigram

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে গিয়ে রিকশাচালক আটক

কুড়িগ্রামে জাল ভোট দিতে গিয়ে রিকশাচালক আটক আটক আবুল কালাম। ছবি: নিউজবাংলা
প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আবুল কালাম একবার এসে ভোট দিয়ে গেছেন। পরে আরও একবার ভোট দিতে আসলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে আটক করে। পরে তাকে ১৫ দিনের জেল দেয়া হয়েছে।’

কুড়িগ্রামে ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে জাল ভোট দিতে যাওয়া এক রিকশা চালককে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার থেতরাই ইউনিয়নের থেতরাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র থেকে মঙ্গলবার দুপুরে তাকে আটক করা হয়।

আটক আবুল কালাম (৩৫) ওই ইউনিয়নের কুমার পাড়া এলাকার বাসিন্দা।

থেতরাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের দায়িত্বরত প্রিজাইডিং কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আবুল কালাম একবার এসে ভোট দিয়ে গেছেন। পরে আরও একবার ভোট দিতে আসলে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাকে আটক করে। পরে তাকে ১৫ দিনের জেল দেয়া হয়েছে।’

এ ছাড়াও ওই উপজেলার দলদলিয়া ইউনিয়নের দলদলিয়া আদর্শ হাইস্কুল কেন্দ্রে দলদলিয়া গ্রামের ফেরদৌস হাসান (১৮) নামে একজনকে আটক করার কথা নিশ্চিত করেন প্রিজাইডিং অফিসার শামসুল আলম।

তিনি বলেন, ‘যুবককে আটকিয়ে রাখা হয়েছে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এদিকে বজরা ইউনিয়নের খামার বজরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে তাসরিফ আলম আমিন নামে একজন জাল ভোট দিতে গিয়ে আটক হয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান প্রিজাইডিং অফিসার সালগিরা।

আরও পড়ুন:
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার
‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
বেনাপোল দিয়ে ভারতে যাওয়ার সময় মিয়ানমারের একজনসহ আটক ৪
৬১৫ কেন্দ্রে ব্যালট যাবে আগের দিন, বাকিগুলোতে ভোটের সকালে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
7 lakh Yaba smuggled by affixing government logo 4

সরকারি লোগো লাগিয়ে ৭ লাখ ইয়াবা পাচার, আটক ৪

সরকারি লোগো লাগিয়ে ৭ লাখ ইয়াবা পাচার, আটক ৪ ইয়াবাসহ গ্রেপ্তারকৃতরা। ছবি: নিউজবাংলা
র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ব্যাটালিয়নের সহ-অধিনায়ক মেজর শরীফুল আহসান বলেন, ‘তল্লাশি করলে গাড়ির পেছনের সিটের নিচে বিশেষ কায়দায় রাখা দুটি বড় বস্তার ভেতরে পাওয়া যায় ৭ লাখ ইয়াবা। জব্দ করা হয় ইয়াবা পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত গাড়িটিও। এসব ইয়াবার আনুমানিক মূল্য ৩ কোটি টাকারও বেশি।’

কক্সবাজারের মেরিন ড্রাইভ সড়কে আত্মসমর্পণ করে সাজা ভোগকারী মাদকের গডফাদারসহ চার মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব। এ সময় তাদের ব্যবহৃত প্রাইভেট কার থেকে সাত লাখ ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব জানিয়েছে, আটককৃতরা সবাই পরস্পর নিকটাত্মীয় এবং সংঘবদ্ধ মাদক কারবারি চক্রের সদস্য।

সোমবার দুপুরে র‌্যাব-১৫ কক্সবাজার ব্যাটালিয়ন কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন ব্যাটালিয়নটির সহ-অধিনায়ক মেজর শরীফুল আহসান।

আটককৃতরা হলেন- টেকনাফ পৌরসভার ডেইল পাড়ার ৪০ বছর বয়সী আব্দুল আমিন, একই এলাকার ২৬ বছর বয়সী জাফর আলম, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের গোদারবিল এলাকার ৩৫ বছর বয়সী মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ ও একই এলাকার ২৮ বছর বয়সী নুরুল আবছার।

র‌্যাব জানায়, আটককৃতদের মধ্যে আব্দুল আমিন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকাভূক্ত মাদক কারবারি। তিনি ২০১৯ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে প্রথম দফায় আত্মসমর্পণ করেছিলেন। পরে সাজাভোগ শেষে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তিনি ইয়াবার বড় একটি চক্র নিয়ন্ত্রণ করেন। তার বিরুদ্ধে টেকনাফসহ দেশের বিভিন্ন থানায় ১১টি মামলা রয়েছে।

সরকারি লোগো লাগিয়ে ৭ লাখ ইয়াবা পাচার, আটক ৪

এছাড়া মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ একজন চিহ্নিত ইয়াবা ব্যবসায়ী। তিনি আব্দুল আমিনের ভাগ্নে। তার বিরুদ্ধে ২টি মাদক মামলা রয়েছে। আটক নুরুল আবছার অপর মোহাম্মদ আব্দুল্লাহর ভগ্নিপতি। তার বিরুদ্ধেও মাদক আইনে একটি মামলা রয়েছে। অপরজন জাফর আলম সংঘবদ্ধ মাদক কারবারি চক্রের সক্রিয় সদস্য এবং বড় মাদকের চালান পাচারে তথ্য সরবরাহের দায়িত্ব পালন করতেন।

সংবাদ সম্মেলনে শরীফুল আহসান বলেন, ‘সোমবার মধ্যরাতে কুখ্যাত মাদক সম্রাট আব্দুল আমিনের নেতৃত্বে তার সিন্ডিকেটের সদস্যরা প্রাইভেট কারযোগে মাদকের বড় একটি চালান টেকনাফ থেকে কক্সবাজার শহরের দিকে পাচারের খবর পায় র‌্যাব। এ তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাবের একটি দল মেরিন ড্রাইভ সড়কের উখিয়া উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের পাটুয়ারটেক এলাকায় অস্থায়ী তল্লাশী চৌকি স্থাপন করে। এক পর্যায়ে রাত সোয়া ২টার দিকে টেকনাফ দিক থেকে সড়ক ও জনপদ বিভাগের স্টিকার লাগানো বিলাসবহুল একটি প্রাইভেট কার সেখানে পৌঁছালে থামার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়, কিন্তু গাড়িতে থাকা লোকজন না থেমে দ্রুত চালিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। এরপর তাদের তাড়াকেরে থামাতে সমর্থ হয় র‌্যাব। এরপর গাড়িতে থাকা লোকজনের আচরণ ও গতিবিধি সন্দেহজনক মনে হওয়ায় জিজ্ঞাসাবাদে মাদকের চালান থাকার তথ্য স্বীকার করেন তারা।’

সরকারি লোগো লাগিয়ে ৭ লাখ ইয়াবা পাচার, আটক ৪

তিনি বলেন, ‘তল্লাশি করলে গাড়ির পেছনের সিটের নিচে বিশেষ কায়দায় রাখা দুটি বড় বস্তার ভেতরে পাওয়া যায় ৭ লাখ ইয়াবা। জব্দ করা হয় ইয়াবা পরিবহনের কাজে ব্যবহৃত গাড়িটিও। এসব ইয়াবার আনুমানিক মূল্য ৩ কোটি টাকারও বেশি।’

র‌্যাবের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘আটকরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে স্বীকারোক্তি দিয়েছে, মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে অবস্থানকারী জনৈক সিরাজের মাধ্যমে আব্দুল আমিনের নেতৃত্বের সিন্ডিকেটের সদস্যরা বড় বড় মাদকের চালান নিয়ে আসত। সীমান্তে সাগর ও নদীপথে মাদকের এসব চালান টেকনাফে এনে নিজেদের হেফাজতে মজুত রাখত। পরে কক্সবাজার শহরে আনার পর সিন্ডিকেটের সদস্যদের মাধ্যমে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পাচার করা হতো।’

আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে উখিয়া থানায় মামলা করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাবের এই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
ভৈরবে হেফাজতে নারী আসামির মৃত্যু তদন্ত করবে র‌্যাব
র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার প্রশ্নে কী বলল যুক্তরাষ্ট্র
জেলে সেজে ইয়াবা উদ্ধার করল পুলিশ
র‌্যাবের মিডিয়া উইংয়ের নতুন পরিচালক আরাফাত ইসলাম
সেনাবাহিনীতে চাকরির ভুয়া নিয়োগপত্র, টাকা আত্মসাতের অভিযোগে একজন আটক 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Teacher accuses former UP chairman of rape

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ শিক্ষিকার শিক্ষিকার সংবাদ সম্মেলন। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম জুয়েল বলেন, ‘আমি বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগ সত্য নয়; মিথ্যা ও বানোয়াট।’

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার ৮ নম্বর বোগলা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আরিফুল ইসলাম জুয়েলের বিরুদ্ধে একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন স্থানীয় একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

সোমবার দুপুরে সুনামগঞ্জ শহরের পৌরবিপনী মার্কেটের দোতলার একটি কক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ আনেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে ওই শিক্ষিকা জানান, ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ ইদুকোনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তিনি নিয়োগ পান। বিদ্যালয়ে কর্মরত থাকাকালে তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যান আরিফুল ইসলাম জুয়েলের সঙ্গে বিভিন্ন জাতীয় দিবস ও অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তার পরিচয় হয়।

এক পর্যায়ে জুয়েল তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন। শুরতে সাবেক ওই চেয়ারম্যানের স্ত্রী সন্তান থাকায় তার প্রস্তাব গ্রহণ করেননি ভুক্তভোগী দাবি করা শিক্ষিকা।

পরবর্তীতে ২০২০ সালের দিকে ধীরে ধীরে দুজনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। পরবর্তীতে ফের বিয়ের করার জন্য চাপ দিলে এক পর্যায়ে কক্সবাজারে গিয়ে বিয়ে হবে বলে ২০২১ সালের ১৮ মার্চ শিক্ষিকাকে বিমানে করে সেখানে নিয়ে যান চেয়ারম্যান। সেখানকার একটি হোটেলে তিনদিন তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন। এরপর ওই শিক্ষিকা বিয়ের জন্য চাপ দিলেও টালবাহানা শুরু করেন অভিযুক্ত চেয়ার‌ম্যান। শুধু তাই নয়, অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ, এমনকি হুমকি-ধমকিও দেয়া হয় বলে অভিযোগ সংবাদ সম্মেলনকারীর।

ওই নারীর অভিযোগ, বিবাহের প্রলোভন দেখিয়ে ও ফ্ল্যাট কেনার কথা বলে তার কাছ থেকে পর্যায়ক্রমে ২০ লাখ টাকাও নিয়েছেন অভিযুক্ত।

তিনি বলেন, ‘আমি নিরুপায় হয়ে সংবাদ সম্মেলন করছি। আমি আরিফুল ইসলাম জুয়েলের স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি চাই। যদি সে আমাকে স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি না দেয়, আমাকে মুসলিম শরিয়া মোতাবেক বিয়ে না করে, তাহলে আমি তার উপযুক্ত বিচার দাবি করছি।’

এ বিষয়ে সোমবার সকালে জেলা প্রশাসক বরাবর অভিযোগ দিয়েছেন ওই সহকারী শিক্ষক।

অভিযুক্ত আরিফুল ইসলাম জুয়েলের সঙ্গে এ ব্যপারে কথা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করেন।

তিনি বলেন, ‘আমি বর্তমানে দোয়ারাবাজার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী। একটি পক্ষ আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। এসব অভিযোগ সত্য নয়; মিথ্যা ও বানোয়াট।’

আরও পড়ুন:
‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
১৫৬ উপজেলায় ভোট কাল
বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The former UP chairman played a beating while distributing the vote money

‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান

‘ভোটের টাকা’ বিলি করতে গিয়ে পিটুনি খেলেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আহত ছালেক মিয়া। ছবি: নিউজবাংলা
চা শ্রমিক ফটিক কুর্মি বলেন, ‌‘শুনেছি চেয়ারম্যান ছালেক বাগানে টাকা বিতরণ করে ভোট কিনছিলেন। শ্রমিকরা তাকে পিটিয়ে আমার বাড়ির দিকে ধাওয়া করলে তিনি আমার বাড়িতে আহত হয়ে আশ্রয় নেন।’

মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীর পক্ষে টাকা বিলি করতে গিয়ে গণপিটুনি খেয়েছেন সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নেতা ছালেক মিয়া।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার মুন্সিবাজার ইউনিয়নের করিমপুর চা বাগানের হাইতলা এলাকায় টাকা বিলির সময় এ ঘটনা ঘটে।

আহত ছালেক মিয়া মুন্সিবাজার ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এবং তিনি মোটরসাইকেল প্রতীকের উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী র‌ওনক আহমদ অপুর সমর্থক।

স্থানীয়রা জানান, আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে র‌ওনক আহমদ অপুর সমর্থনে কাজ করছেন ছালেক মিয়া। নির্বাচনি প্রচারের শেষ দিন ছালেক মিয়া ও তার ভাই বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবলু আহমদকে নিয়ে প্রাইভেট কারে চা বাগান এলাকায় যান। এরপর মোটরসাইকেল প্রতিকের প্রার্থীর পক্ষে টাকা বিলি করা হচ্ছে- এমন দৃশ্য দেখে চা শ্রমিকরা বাধা দেন। এ সময় কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে উত্তেজিত শ্রমিকরা গণপিটুনি দেয়। পরে তিনি পালিয়ে ফটিক কুর্মি নামের এক চা শ্রমিকের বাড়িতে আশ্রয় নেন। এ সময় প্রায় ২ ঘণ্টা পর তাকে অবরুদ্ধ করে রাখেন চা শ্রমিকরা। খবর পেয়ে রাজনগর থানা পুলিশ তাকে উদ্ধার করে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করে।

ফটিক কুর্মি বলেন, ‌‘শুনেছি চেয়ারম্যান ছালেক বাগানে টাকা বিতরণ করে ভোট কিনছিলেন। শ্রমিকরা তাকে পিটিয়ে আমার বাড়ির দিকে ধাওয়া করলে তিনি আমার বাড়িতে আহত হয়ে আশ্রয় নেন।’

চা শ্রমিক নিয়তি রিকমন বলেন, ‘ছালেক মিয়া আমাদের ৫০০ টাকা দিয়ে মোটরসাইকেলে ভোট দিতে বলেন। এতে আমরা রাজি হ‌ইনি, তাই মানুষে তাকে মেরেছে।’

রাজনগর ওসি (তদন্ত) মির্জা মাজহারুল আনোয়ার বলেন, ‘খবর পেয়ে ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যাই। আহত চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে নিয়ে আসি।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে আহত ছালেক মিয়াকে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

আরও পড়ুন:
আ.লীগ নেতার অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও ভাইরাল; শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন
১৫৬ উপজেলায় ভোট কাল
বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Four dead bodies including a couple were recovered from Savar

সাভারে দম্পতিসহ চার মরদেহ উদ্ধার

সাভারে দম্পতিসহ চার মরদেহ উদ্ধার সোমবার আশুলিয়ার ইউসুফ মার্কেট এলাকায় ভাড়া বাড়িতে স্বামী-স্ত্রীর মরদেহ দেখে ভিড় জমায় উৎসুক প্রতিবেশীরা। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশ জানায়, সোমবার বিকেলে আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের ইউসুফ মার্কেট এলাকায় ফজলুল করিমের বাড়ি থেকে রুহুল আমিন ও তার স্ত্রী মনি বেগমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া পৃথক স্থান থেকে দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

রাজধানীর অদূরে সাভারে পৃথক ঘটনায় এক দম্পতিসহ চারজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার বিকেল পর্যন্ত আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের ইউসুফ মার্কেট, টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের ইউনিক বাস স্ট্যান্ড ও আশুলিয়া থেকে মরদেহগুলো উদ্ধার করা হয়।

যাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে তাদের মধ্যে রুহুল আমিন হাওলাদার ও মনি বেগম স্বামী-স্ত্রী। এই দম্পতি আশুলিয়ার ইউসুফ মার্কেট এলাকায় ফজলুল করিমের মালিকানাধীন টিনশেড বাড়ির একটি কক্ষে ভাড়া থাকতেন।

তাদের মধ্যে রুহুল আমিনের বাড়ি পটুয়াখালী সদর থানার কুড়িপাইকা গ্রামে। বাবার নাম হাকিম আলী হাওলাদার। আর মনি বেগমের বাবার নাম সোবহান মৃধা। তার বাবার বাড়ি বরগুনার আমতলী থানার দক্ষিণ রাওগা গ্রামে।

উদ্ধার হওয়া আরেকটি মরদেহ নাজমুল হাসান নামের এক যুবকের। তিনি নাটোর সদর থানার পিরজিপাড়া গ্রামের আব্দুল আওয়ালের ছেলে।

আরেকজনের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি পুলিশ।

আশুলিয়া থানা পুলিশ জানায়, সোমবার বিকেল ৪টার দিকে আশুলিয়ার ইয়ারপুর ইউনিয়নের ইউসুফ মার্কেট এলাকায় ফজলুল করিমের বাড়ি থেকে রুহুল আমিন ও তার স্ত্রী মনি বেগমের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। রুহুল আমীনের মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় ও তার স্ত্রী মনির মরদেহ বিছানায় পড়ে থাকতে দেখে থানায় খবর দেয় স্থানীয়রা।

এদিকে একই ইউনিয়নের ইউনিক বাস স্ট্যান্ড এলাকা থেকে নাজমুল হোসেন নামে একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সকালে স্ত্রী কর্মস্থল পোশাক কারখানায় চলে যাওয়ার পর দুপুরে তিনি ফ্যানের সঙ্গে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। পারিবারিক কলেহের জের ধরে তিনি আত্মহত্যা করেছেন বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এছাড়া আশুলিয়ার চারাবাগ এলাকা থেকে অপর একজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তবে প্রাথমিকভাবে তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মাসুদুর রহমান বলেন, ‘আজ (সোমবার) আশুলিয়ার বিভিন্ন স্থান থেকে চারজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এসব ঘটনায় সময়সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
নিখোঁজের ৪ দিন পর যুবকের হাত-পা বাঁধা মরদেহ উদ্ধার
মাছের ঘেরের পাশ থেকে ২ জেলের মরদেহ উদ্ধার
ছেলের চিকিৎসার ‘খরচ চালাতে না পেরে আত্মহত্যা’ মায়ের
নওগাঁয় ভুট্টাক্ষেত থেকে কৃষকের মরদেহ উদ্ধার
রেললাইনে নারীর দ্বিখণ্ডিত মরদেহ, বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
EC orders transfer of two OCs of Bagerhat
উপজেলা নির্বাচন

বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির

বাগেরহাটের দুই ওসিকে বদলির নির্দেশ ইসির
বাগেরহাটের ফকিরহাট মডেল থানার ওসি আশরাফুল আলম ও জেলা ডিবির ওসি স্বপন রায়ের বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনের প্রচারে পক্ষপাতের অভিযোগ আনা হয়েছিল ইসিতে। এক প্রার্থীর করা ওই অভিযোগের ভিত্তিতে কমিশন তাদের বদলির সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

বাগেরহাটের ফকিরহাট মডেল থানার ওসি ও জেলা ডিবির ওসিকে বদলির নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে এক প্রার্থীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কমিশন এ নির্দেশনা দিয়েছে।

সোমবার ইসির উপ-সচিব মো. মিজানুর রহমান নির্দেশনাটি খুলনা রেঞ্চের উপমহাপুলিশ পরিদর্শককে পাঠিয়েছেন।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে বাগেরহাট জেলার ফকিরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আশরাফুল আলম ও বাগেরহাট জেলা ডিবির ওসি স্বপন রায়কে ডিআইজি, খুলনা রেঞ্জ, খুলনায় নির্বাচনের সময় পর্যন্ত সংযুক্ত করে ওই কর্মকর্তাদ্বয়ের পরবর্তী কোনো কর্মকর্তাকে ফকিরহাট মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ এবং ডিবি ওসির দায়িত্ব প্রদানের জন্য নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে।

সম্প্রতি ওই দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাচনের প্রচারে পক্ষপাতের অভিযোগ আনা হয়েছিল ইসিতে। এক প্রার্থীর করা অভিযোগের ভিত্তিতে কমিশন তাদের বদলির সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
ভোটের হার কম হলে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই: ইসি আলমগীর
মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নির্বাচন স্থগিত
ভোট কম পড়ার বড় কারণ বিএনপির বর্জন: ইসি আলমগীর
উপজেলা নির্বাচন: দ্বিতীয় ধাপে ৪৫৭ প্লাটুন বিজিবি মোতায়েন
১৫৭ উপজেলায় রোববার মাঠে নামছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The young man was beaten to death by being tied to a tree

ঝালকাঠিতে গাছে বেঁধে যুবককে পিটিয়ে হত্যা

ঝালকাঠিতে গাছে বেঁধে যুবককে পিটিয়ে হত্যা
গ্রামপুলিশ সিরাজ জোমাদ্দার বলেন, ‘রোববার রাত ২টায় আমি হাওলাদার বাড়ির সামনে দিয়ে যাওয়ার সময় দেখি গাছের সঙ্গে একটা লোককে বেঁধে পেটাচ্ছে সরোয়ার এমাদুলসহ স্থানীয় আরও ৪/৫ জন। পরদিন সকালে গিয়ে দেখি লোকটি রাস্তায় পড়ে আছে।’

ঝালকাঠিতে গাছের সঙ্গে বেঁধে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। জেলার নলছিটি উপজেলার বিসিক শিল্প নগরীর পেছনে ঢাপর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

সোমবার সকালে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। ২৪ বছর বয়সী নিহত যুবকের নাম মো. রিয়াজ ফকির। বাবার নাম নূরু ফকির। বাড়ি পিরোজপুর জেলার চরখালি গ্রামে।

ভৈরবপাশা ইউনিয়নের ঢাপর এলাকার গ্রামপুলিশ সিরাজ জোমাদ্দার ঘটনার আংশিক বর্ণনা দিয়ে বলেন, “রোববার রাত ২টায় আমি হাওলাদার বাড়ির সামনে দিয়ে যাচ্ছিলাম। তখন দেখি ওই বাড়ির সামনে গাছের সঙ্গে একটা লোককে বেঁধে পেটাচ্ছে সরোয়ার এমাদুলসহ স্থানীয় আরও ৪/৫ জন।

“আমি তাদের কাছে জানতে চাইলে সরোয়ার বলে, ‘অচেনা লোক এলাকায় ঘুরতেছে। হয়তো চোর হবে।’ তারপর আমি বাড়ি চলে যাই। সকালে আবার সেখানে গিয়ে দেখি বাড়ির পেছনে রাস্তায় ওই লোক পড়ে আছে। তারপর আমি থানায় ফোন করি এবং হাসপাতালে নিয়ে যাই। হাসপাতালে আনার পর ডাক্তার জানান যে লোকটি ইতোমধ্যে মারা গেছে।”

লাশের সুরতহালকারী কর্মকর্তা ঝালকাঠি সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) গৌতম কুমার ঘোষ বলেন, ‘মরদেহের মাথার ডান পাশে রক্তাক্ত আঘাত এবং ডান পায়ের হাঁটুর নিচে দুটি স্থানে রক্তাক্ত জখম রয়েছে। নিহতের পকেটে থাকা জাতীয় পরিচয়পত্র থেকে নাম-পরিচয় পেয়ে স্বজনদের খবর দেয়া হয়েছে।’

নিহত রিয়াজের বাবা নূরু ফকির বলেন, ‘আমার ছেলে শুক্রবার সন্ধ্যায় পিরোজপুরের চরখালী থেকে জাহাঙ্গীর মোল্লার ট্রলারে করে কলাপাড়ার উদ্দেশে রওনা দেয়। সেখান থেকে ওর সাগরে মাছ ধরতে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সে ঝালকাঠিতে কেমনে এলো, কারা মারল কিছুই বুঝতেছি না। আমার ছেলেকে পরিকল্পিতভাবে কারা হত্যা করা হয়েছে। আমি এর সুষ্ঠু তদন্ত এবং বিচার চাই।’

সদর থানার ওসি মো. শহিদুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রাথমিকভাবে বোঝা যাচ্ছে যে এটি একটি হত্যাকাণ্ড। ঘটনাটি পার্শ্ববর্তী নলছিটি থানা এলাকায় ঘটেছে। সেহেতু ময়নাতদন্ত রিপোর্ট দেখে নলছিটি থানা পুলিশ পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেবে।’

আরও পড়ুন:
জমি নিয়ে বিরোধে ভাতিজিকে গলা কেটে হত্যার অভিযোগ
লংগদুতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে দুই কর্মী নিহত: ইউপিডিএফ
জমি নিয়ে বিরোধের জেরে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ
মৃত বাবাকে দেখতে এক ঘণ্টা সময় পেলেন মেয়ে
মাদ্রাসাছাত্র হত্যা: ১১ মাস পর প্রধান আসামি গ্রেপ্তার

মন্তব্য

p
উপরে