× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Transport strike is going on in Sylhet
hear-news
player
google_news print-icon

সিলেটে চলছে পরিবহন ধমর্ঘট

সিলেটে-চলছে-পরিবহন-ধমর্ঘট
সিলেট বিভাগীয় ট্রাক পিকআপ কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শাব্বীর আহমদ বলেন, ‘পাথর তুলতে না দেয়ায় আমাদের ব্যবসায় একেবারে ধস নেমেছে। শ্রমিকরাও বেকার হয়ে পড়েছে। তাই বাধ্য হয়ে ধর্মঘট ডেকেছি।’

কোয়ারিগুলো থেকে পাথর তোলার ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের দাবিতে সিলেটে ৪৮ ঘণ্টার পণ্যবাহী পরিবহন ধর্মঘট চলছে। ৪৮ ঘণ্টার এই ধর্মঘট শুরু হয়েছে সোমবার ভোর ৬টা থেকে।

ধর্মঘটের কারণে ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, পিকআপসহ পণ্যবাহী সব ধরনের পরিবহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে নগরে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ধর্মঘটের তেমন প্রভাব পড়েনি।

সংবাদ সম্মেলন করে গত ১৭ অক্টোবর এই ধর্মঘটের ঘোষণা দেয় সিলেট বিভাগীয় ট্রাক, পিকআপভ্যান ও কাভার্ডভ্যান মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। একইসঙ্গে দাবি আদায় না হলে পুরো বিভাগে অনির্দিষ্টকালের পণ্যবাহী পরিবহন ধর্মঘটের হুঁশিয়ারি দিয়েছে সংগঠনটি।

এনিয়ে রোববার রাতে সিলেটের জেলা প্রশাসনের সঙ্গে পরিবহন মালিক-শ্রমিক নেতাদের বৈঠক হলেও তা ফলপ্রসূ হয়নি। ফলে সকাল থেকে শুরু হয় ধর্মঘট। তবে ধর্মঘটের মধ্যেও মহাসড়কগুলোতে কিছু কিছু পণ্যবাহী পরিবহন চলতে দেখা গেছে।

পরিবহন শ্রমিক নেতারা বলছেন, সিলেটের ভোলাগঞ্জ, বিছনাকান্দি, জাফলং এবং লোভাছড়া পাথর কোয়ারিগুলো থেকে পাথর তোলা প্রায় ৫ বছর ধরে বন্ধ। ১৫ লাখ ব্যবসায়ী-শ্রমিক ও পরিবহন মালিক-শ্রমিক চরম সংকটে পড়েছেন।

সিলেট বিভাগীয় ট্রাক পিকআপ কাভার্ডভ্যান মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক শাব্বীর আহমদ বলেন, ‘পাথর তুলতে না দেয়ায় আমাদের ব্যবসায় একেবারে ধস নেমেছে। শ্রমিকরাও বেকার হয়ে পড়েছে। তাই বাধ্য হয়ে ধর্মঘট ডেকেছি।

‘প্রথমে আমরা জেলায় ৪৮ ঘণ্টার ধর্মঘট ডেকেছি। এরমধ্যে দাবি পূরণ না হলে ৩ নভেম্বর আমরা বিভাগীয় সমাবেশ করব। এই সমাবেশ থেকে পুরো বিভাগে ধর্মঘটের ডাক দেয়া হবে।’

জেলা প্রশাসক মো. মজিবুর রহমান বলেন, ‘কোয়ারি থেকে পাথর তোলার দাবির পরিপ্রেক্ষিতে খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে উচ্চ পর্যায়ের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। ৩ নভেম্বর এই কমিটির সদস্যরা সিলেটের কোয়ারিগুলো পরিদর্শনে আসবেন। তারা সরেজমিনে পরিদর্শন করে দেখবেন পাথর উত্তোলনের যৌক্তিকতা আছে কি না। তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে সরকার পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে।’

বাংলাদেশ খনিজসম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী, সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ৪, গোয়াইনঘাট উপজেলায় ২ এবং কানাইঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলায় একটি করে মোট ৮ পাথর কোয়ারি আছে।

২০১৯ সালের ৩ ডিসেম্বর মন্ত্রিপরিষদ ‘পাথর উত্তোলনে সমস্যা নিরসনে সুপারিশ প্রণয়ন কমিটি’ গঠনের পরিপ্রেক্ষিতে জ্বালানি ও খনিজসম্পদ বিভাগের ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ ও ২ নভেম্বর ২০২০ তারিখের নির্দেশনা অনুযায়ী সব পাথর কোয়ারি ইজারা বন্ধ আছে।

আরও পড়ুন:
জ্বালানি, টেলিযোগাযোগ ও আইসিটিতে ধর্মঘট ডাকলে সাজা
ন্যূনতম মজুরি ঘোষণার দাবি চালকল শ্রমিকদের
পা পিছলে ট্রাকের নিচে ‘মাতাল’ যুবক
বাস মালিকরা স্বাধীন, আমাদের কিছু করার নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
পরিত্যক্ত গভীর কূপে নারীর মরদেহ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The son of the defeated candidate was not allowed to enter the examination hall

পরাজিত প্রার্থীর ছেলেকে ঢুকতে দেয়া হয়নি পরীক্ষার হলে

পরাজিত প্রার্থীর ছেলেকে ঢুকতে দেয়া হয়নি পরীক্ষার হলে হোসেন্দী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের গেটে ওত পেতে ছিলেন উপনির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী মিঠুর সমর্থকেরা। ছবি: সংগৃহীত
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খবিরুল আলম বলেন, ‘অষ্টম শ্রেণির শুধুমাত্র একজন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়নি। শুনেছি পথে কি যেন একটা ঝামেলা হয়েছে। এর পেছনে কী কারণ, তা আমার জানা নেই।’

মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় অষ্টম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢুকতে না দেয়ার অভিযোগ উঠেছে হোসেন্দেী ইউনিয়ন পরিষদের উপনির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থী মনিরুল হক মিঠুর সমর্থকদের বিরুদ্ধে।

হোসেন্দী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থীর অভিযোগ, তার বাবা নির্বাচনে পরাজিত হওয়ায় তাকে পরীক্ষার হলে ঢুকতে বাধা দেয়া হয়েছে।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হোসেন্দী গ্রামের রোকন সরকারের ছেলে।

ওই শিক্ষার্থী জানায়, রোববার থেকে তাদের বার্ষিক পরীক্ষা শুরু হয়েছে। পরীক্ষা দিতে সকালে সহপাঠীদের সঙ্গে বাড়ি থেকে বিদ্যালয়ের উদ্দেশে বের হয় সে। পরে বিদ্যালয়ের সামনে আসলে ওত পেতে থাকা চেয়ারম্যান মিঠুর সমর্থকরা তাকে অটোরিকশা থেকে নামিয়ে প্রথমে হুমকি এবং পরে মারধর করে তাড়িয়ে দেয়।

এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খবিরুল আলম বলেন, ‘অষ্টম শ্রেণির শুধুমাত্র একজন শিক্ষার্থী পরীক্ষা দেয়নি। শুনেছি পথে কি যেন একটা ঝামেলা হয়েছে। এর পেছনে কী কারণ, তা আমার জানা নেই। তবে যে শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পারেনি পুনরায় বিশেষভাবে তার পরীক্ষা নেয়া যায় কি-না এ বিষয়ে ম্যানেজিং কমিটি সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে দেখবো।’

বিষয়টি সম্পর্কে গজারিয়া থানায় ওসি মোল্লা সোহেব আলী বলেন, ‘একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।’

এদিকে আব্দুল্লাহ আল নাদিম নামে বিরোধী প্রার্থীর আরেক সমর্থককে রোববার সকালে অফিসে যাওয়ার পথে হোসেন্দী বাজার এলাকায় সিএনজি থেকে নামিয়ে মারধর করারও অভিযোগ উঠেছে মিঠুর কর্মীদের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে পৌর নির্বাচন থেকে সরলেন মেয়র প্রার্থী আজম
‘ভোটারের কাছে প্রার্থী খাটো কী, লম্বা কী?’
ঢাকা-১৪ আসন: আওয়ামী লীগের প্রার্থী কে?
কালিয়ায় সরে দাঁড়ালেন আ. লীগের বিদ্রোহী মুশফিকুর
চট্টগ্রামে কাউন্সিলর প্রার্থীর বাসায় হামলার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
After 5 days of disappearance the businessman was rescued and arrested 6

নিখোঁজের ৫ দিন পর ব্যবসায়ী উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৬

নিখোঁজের ৫ দিন পর ব্যবসায়ী উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৬
এজাহার অনুযায়ী, গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে মেহেদী ও তার কর্মচারী ইউসুফ আলী দোকানেই ছিলেন। এ সময় ৬ থেকে ৭ জন সাদা হায়েস মাইক্রোবাসে করে সেখানে আসে। ৫ জন গাড়ি থেকে নেমে মেহেদীকে টেনেহিঁচড়ে তুলে নেয়।

ঢাকার সাভারে নিখোঁজের ৫ দিন পর ব্যবসায়ীকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে অপহরণের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৬ জনকে।

এসব তথ্য রোববার নিশ্চিত করেছেন আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আল মামুন কবির।

তিনি জানান, আশুলিয়ার ইউনিক এলাকায় নাম্বান ওয়ান স্মার্ট ফার্নিচার অ্যান্ড ডোর নামে নিজ দোকান থেকে গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যায় তুলে নেয়া হয় ব্যবসায়ী মেহেদী হাসানকে। পুরো ঘটনা রেকর্ড হয় দোকানের সিসিটিভি ক্যামেরায়। পরদিন মেহেদীকে অপহরণের অভিযোগে আশুলিয়া থানায় মামলা করেন তার স্ত্রী মোরশেদা খাতুন।

গ্রেপ্তার আসামিরা হলেন- যশোর জেলার মনিরামপুর থানার কেরতপুর গ্রামের কেরামুন হোসেন সম্রাট, টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর থানার ধাউরা নয়াপাড়ার আব্দুল আউয়াল, একই থানার আন্দুরার বাবুল মিয়া, পেকুরা গ্রামের রফিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোছা. খাদিজা এবং একই জেলার বাসাইল থানার রাসেল মিয়া।

এজাহারে বলা হয়েছে, ৩৫ বছর বয়সী মেহেদী হাসান মানিকগঞ্জ জেলার ঘিওর উপজেলার পশ্চিম কলিয়া গ্রামের পান্নু মিয়ার ছেলে। দুই সন্তান ও স্ত্রীকে নিয়ে তিনি আশুলিয়ার শিমুলতলা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। উত্তর গাজীরচট এলাকার মনির মন্ডলের বাড়ির নিচতলায় দোকান ভাড়া নিয়ে ফার্নিচারের ব্যবসা করেন।

এজাহার অনুযায়ী, গত ২২ নভেম্বর সন্ধ্যা ৭টার দিকে তিনি ও তার কর্মচারী ইউসুফ আলী দোকানেই ছিলেন। এ সময় ৬ থেকে ৭ জন সাদা হায়েস মাইক্রোবাসে করে সেখানে আসে। ৫ জন গাড়ি থেকে নেমে মেহেদীকে টেনেহিঁচড়ে তুলে নেয়। পরদিন সন্ধ্যায় তার স্ত্রীকে কল করে মেহেদী জানান, তাকে অপরিচিত স্থানে আটকে রাখা হয়েছে।

এসআই আল মামুন কবির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যবসায়ীকে অপহরণের ঘটনায় গতকাল (শনিবার) রাতে ৬ জনকে টাঙ্গাইল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অপহৃতকে উদ্ধারসহ একটি মাইক্রোবাস জব্দ করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
অপহরণ মামলায় খালাস সিরিয়াল কিলার রসু খাঁ
অপহরণের অভিযোগ পেয়ে ঘণ্টার মধ্যে যুবককে উদ্ধার
৬ মামলার আসামির উৎপীড়নে বন্ধ স্কুলছাত্রীর পড়ালেখা
র‍্যাব পরিচয়ে অটোরিকশাচালককে অপহরণ, গ্রেপ্তার ২
জুয়ায় হেরে নিজেকে ‘অপহরণ’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
71 gd for loss of mobile at BNP rally in Comilla

কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে মোবাইল হারানোর ৭১ জিডি

কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে মোবাইল হারানোর ৭১ জিডি নেতা-কার্মীদের ভিড়েই ঘাপটি মেরে ছিল মোবাইল চোরের দল। ছবি: নিউজবাংলা
সমাবেশে অংশ নেয়া চিত্রনায়ক হেলাল খান বলেন, ‘আমি অভিনেতা। আমাকে দেখে অনেকেই ছবি তুলেছে। সেলফি তুলেছে। আমি কি জানতাম- মোবাইলটা নিয়ে যাবে!’

শনিবার অনুষ্ঠিত কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে শতাধিক মোবাইল চুরির ঘটনা ঘটেছে।

সমাবেশের পর থেকে রোববার রাত ৯টা পর্যন্ত কোতোয়ালি মডেল থানায় ৭১ জন সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তাদের মধ্যে বিএনপির আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক ব্যারিস্টার রুমিন ফারহানা ও চিত্রনায়ক হেলাল খানও রয়েছেন।

এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আহম্মদ সনজুর মোর্শেদ।

ওসি বলেন, ‘প্রতিদিনই মোবাইল হারানোসহ বিভিন্ন বিষয়ে সাধারন ডায়েরি হয়। তবে গতকাল শনিবার ও আজ এ দুদিনেই শুধু মোবাইল হারানোর জন্য ৭১টি সাধারণ ডায়েরি হয়েছে।’

চিত্রনায়ক হেলাল খান তার মোবাইল হারিয়ে শনিবার বেলা আড়াইটার দিকে জিডি করেন। তিনি বলেন, ‘আমি অভিনেতা। আমাকে দেখে অনেকেই ছবি তুলেছে। সেলফি তুলেছে। আমি কি জানতাম- মোবাইলটা নিয়ে যাবে!’

সমাবেশের আগের দিন শুক্রবার রাত ৯টার কিছু আগে কান্দিরপাড় লিবার্টি মোড়ে এসে গাড়ি থেকে নামেন বিএনপি নেত্রী রুমিন ফারহানা।

এ সময় তিনি হেটে সমাবেশস্থলের দিকে যান। সেখানে সমাবেশের প্রস্তুতি দেখে ফিরে পূবালী চত্বরে আসার সময় খেয়াল করেন তার মোবাইলটি নেই। পরে তিনি তার ব্যাগেও খুঁজে দেখেন।

বিষয়টি জানতে পেরে বহিষ্কৃত বিএনপি নেতা ও কুমিল্লা নগরীর সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু তার এক কর্মীকে দিয়ে সমাবেশস্থলে হ্যান্ড মাইকে মোবাইলটির খোঁজ দিতে উপস্থিত নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে আহ্বান জানান। এমনকি মোবাইলটি উদ্ধার করে দিতে পারলে ২০ হাজার টাকা পুরষ্কার দেয়ার ঘোষণা দেয়া হয়।

তবে রোববার রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত রুমিন ফারহানা ও চিত্রনায়ক হেলাল খানের মোবাইল উদ্ধারের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

কেন এত মোবাইল চুরি এমন প্রশ্নে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক হাজী আমিনুর রশীদ ইয়াছিন বলেন, ‘এত কর্মীর সমাবেশ। তার মধ্যে চোরেরাও ঘাপটি মেরে ছিল।’

বিএনপির এই নেতা আরও বলেন, ‘আমি ৩৩ বছর ধরে বিএনপির রাজনীতি করি। বিভিন্ন সময় মঞ্চে বক্তব্য দিতে হয়। একবার এক মঞ্চে উঠলাম বক্তব্য দিতে। বক্তব্য দেয়ার সময় আমার গলা শুকিয়ে আসে। সেজন্য পকেটে একটি কমলা রেখেছিলাম। যেন গলা শুকিয়ে গেলে এক কোষ কমলা খেয়ে স্বাভাবিক থাকতে পারি। কিন্তু বক্তব্যের সময় পকেটে হাত দিয়ে দেখি- কে যেন আমার কমলাটাও চুরি করে নিয়ে গেছে!’

আরও পড়ুন:
কুমিল্লা সমাবেশ: বিএনপির ভেতরে ক্ষোভের আগুন
কুমিল্লায় সমাবেশ নিয়ে সাক্কু-কায়সারের রাজ্যের হতাশা
সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ কুমিল্লার সমাবেশ
ভালোয় ভালোয় কেটে পড়ুন: সরকারকে ফখরুল
চব্বিশে আমরা ক্ষমতায়: রুমিন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sheikh Hasina is our only commander Amu

শেখ হাসিনা আমাদের একমাত্র সেনাপতি: আমু

শেখ হাসিনা আমাদের একমাত্র সেনাপতি: আমু রোববার পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে বক্তব্য দেন আমির হোসেন আমু। ছবি: নিউজবাংলা
পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে আমির হোসেন আমু বলেন, ‘আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। সেই ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দলের প্রতিটি নেতাকর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

আওয়ামী লীগ উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘শেখ হাসিনা আমাদের একমাত্র সেনাপতি। তার নির্দেশ অনুযায়ী আমরা চলব। তিনি যেভাবে নির্দেশ দেবেন সেভাবেই কমিটি ঘোষণা করা হবে। কে সভাপতি আর কে সাধারণ সম্পাদক এটা আমাদের দেখার বিষয় নয়।’

রোববার পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আমির হোসেন আমু এসব কথা বলেন।

পিরোজপুর শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ চত্বরে এই সম্মেলন ভার্চুয়াল মাধ্যমে যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আমির হোসেন আমু বলেন, ‘শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে ঘোষণা দিয়েছিলেন- বঙ্গবন্ধু হত্যা ও যুদ্ধাপরাধের বিচার করে বাংলাদেশকে পাপমুক্ত করবো। তিনি অসীম সাহসিকতার সঙ্গে সে কাজটি করেছেন।

‘শেখ হাসিনার প্রতিটি পদক্ষেপ ছিল কণ্টকাকীর্ণ। প্রতিটি পদক্ষেপে ছিল মৃত্যুর ঝুঁকি। ১৯বার তার প্রাণনাশের চেষ্টা হয়েছে। তিনি পিছপা হননি। অকুতোভয়ে এগিয়ে গেছেন। আজ তিনি সফলতা এনেছেন।’

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে আওয়ামী লীগের এই বর্ষীয়াণ নেতা বলেন, ‘আজ আবার ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। সেই ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আপনাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এ কে এম আউয়ালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনে প্রধান বক্তা ছিলেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ।

বিশেষ অতিথি ছিলেন কেন্ত্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম হাওলাদার, সংসদ সদস্য আমিরুল আলম মিলন ও সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান মালেক।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় ভাগে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে কাউন্সিলে এ কে এম আউয়ালকে সভাপতি ও এম এ হাকিম হাওলদারকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

আরও পড়ুন:
আমরা অনেক ভালো আছি: আমু
তারা দেশপ্রেমিক নয়: আমু
সামরিক স্বৈরশাসনের অনুসারীরা আজ গণতন্ত্র শেখাতে চায়: আমু
সংবিধান মেনেই নির্বাচন হবে: আমু 

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Beating and arresting the farmer by tying his hands and feet 2

কৃষককে হাত-পা বেঁধে মারধর, আটক ২

কৃষককে হাত-পা বেঁধে মারধর, আটক ২ কৃষককে মারধরের ভিডিও থেকে নেয়া ছবি। ছবি: নিউজবাংলা
গাজীকে মারধরের অভিযোগ স্বীকার করেছেন আবুল কালাম আজাদের পুত্রবধূ হাছনা হেনা। তিনি বলেন, ‘গাজী আমাদের অত্যাচার করছে, তাই তারে বাইন্দা রাইখে কিছু মাইরপিট করা হইছে।’

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে জমির বিরোধের জেরে কৃষককে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে। এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়েছে ফেসবুকে। এরপর পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার ও দুইজনকে আটক করে।

ঝিনাইগাতীর ধানশাইল ইউনিয়নের মাধারপুর গ্রামে রোববার সকালে এ ঘটনা ঘটে। নির্যাতনের শিকার কৃষকের নাম আবু রাইহান গাজী।

ঝিনাইগাতী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম ভূঁইয়া এসব নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয় লোকজন ও কৃষক গাজীর পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অনেকদিন ধরেই প্রতিবেশী মো. শাহজাদা, আবুল কালাম আজাদ ও মো. সামিউলের সঙ্গে গাজীর বিরোধ চলছিল। দুই পক্ষই অপর পক্ষের জমির উপর দিয়ে চলাচল করত। এ নিয়ে তাদের মধ্যে অনেকবার তর্কাতর্কি হয়েছিল। এরই জেরে রোববার প্রতিপক্ষের লোকজন রশি দিয়ে হাত-পা বেঁধে গাজীকে মারধর করে।

গাজীর স্ত্রী রাণী বেগম বলেন, ‘আমার স্বামীরে ওরা ধইরা নিয়া বাইন্দা মাইরপিট করে। কত ডাকচিৎকার পারলো। ওগোরে ডরে কেউ ফিরাবার যাবার সাহস পাই নাই। আমি এর বিচার চাই।’

গাজীর ভাই জালাল জানান ফেসবুকে মারধরের ভিডিও দেখে তিনি ৯৯৯ এ কল দিয়েছিলেন। এরপর পুলিশ গিয়ে গাজীকে উদ্ধার করে।

গাজীকে মারধরের অভিযোগ স্বীকার করেছেন আবুল কালাম আজাদের পুত্রবধূ হাছনা হেনা। তিনি বলেন, ‘গাজী আমাদের অত্যাচার করছে, তাই তারে বাইন্দা রাইখে কিছু মাইরপিট করা হইছে।’

ঝিনাইগাতী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গাজী আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি হয়েছিলেন জানিয়ে চিকিৎসা কর্মকর্তা তাসনুভা হোসেন বলেন, ‘এখন তার শারীরিক অবস্থা উন্নতির দিকে।’

ঝিনাইগাতী থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা ঘটনা জানার সঙ্গে সঙ্গে গিয়ে আহত অবস্থায় গাজীকে উদ্ধার করেছি। অভিযান চালিয়ে দুই জনকে আটক করেছি।’

আরও পড়ুন:
‘নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি নারী নির্যাতনের কারণ’
নারী-শিশু নির্যাতন মামলা ১৮০ দিনের মধ্যে নিষ্পত্তির দাবি
মহাসড়কের জমি বন্ধক: তদন্ত করে ব্যবস্থা চায় হাইকোর্ট
লাখ টাকা ঘুষ নিয়ে পর্চা দেয়ার অভিযোগ
হোটেলে ঢুকে ছবি তোলায় সাংবাদিককে লাঞ্ছনার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The death of the hippopotamus drowned in the reservoir

জলাশয়ে ডুবে হস্তিশাবকের মৃত্যু 

জলাশয়ে ডুবে হস্তিশাবকের মৃত্যু  এভাবেই জলাশয়ে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় হস্তিশাবকটিকে। ছবি: নিউজবাংলা
লোহাগড়ার চুনতি রেঞ্জের সাতঘর বিট কর্মকর্তা শাহ আলম হাওলাদার বলেন, ‘রাতের কোনো এক সময় পাহাড় থেকে এসে পানি খেতে নেমে হয়ত আর উঠতে পারেনি। শ্বাসরোধে মৃত্যু হয়েছে।’

চট্টগ্রামের লোহাগড়ায় জলাশয় থেকে একটি হস্তিশাবকের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে বন বিভাগ।

ময়নাতদন্তে শাবকটির গায়ে কোনো আঘাতের চিহ্ন না পাওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে পানিতে ডুবে শ্বাসরোধেই এর মৃত্যু হয়েছে।

রোববার নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন লোহাগড়ার চুনতি রেঞ্জের সাতঘর বিট কর্মকর্তা শাহ আলম হাওলাদার।

তিনি বলেন, ‘সকাল ৮টায় (রোববার) স্থানীয়দের কাছে খবর পেয়ে আমরা মরদেহটি পানি থেকে উদ্ধার করি। জলাশয়টি ৭ থেকে ৮ ফুট গভীর ছিল। আর হাতিটি একটি মাদি শাবক ছিল। আশপাশে বিদ্যুৎ সংযোগ বা বসতি ছিল না। এমনকি কোনো ধানক্ষেতও আশপাশে নেই।

‘ময়নাতদন্তেও কোনো আঘাতের চিহ্নও পাওয়া যায়নি। তাই ধারণা করছি, রাতের কোনো এক সময় পাহাড় থেকে এসে পানি খেতে নেমে হয়ত আর উঠতে পারেনি। শ্বাসরোধে মৃত্যু হয়েছে।’

আনুমানিক ২ বছর বয়সী ওই হস্তিশাবকটির মরদেহ ঘটনাস্থলের পাশেই মাটিচাপা দেয়া হয়েছে বলে জানান শাহ আলম।

আরও পড়ুন:
ধানের ক্ষেতে মৃত ভারতীয় হাতি
বুনোহাতির আক্রমণে কৃষকের মৃত্যু
হাতিরঝিলে লাফ যুবকের, মরদেহ উদ্ধার
হাতিরঝিলে আপাতত উচ্ছেদ হচ্ছে না বাণিজ্যিক স্থাপনা
সড়কে চাঁদাবাজির অভিযোগে আটক হাতি ও মাহুত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A fire broke out in Nivel Market after burning for two and a half hours

তিন ঘণ্টা পুড়িয়ে নিভল মার্কেটে লাগা আগুন

তিন ঘণ্টা পুড়িয়ে নিভল মার্কেটে লাগা আগুন
ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা মো. আবুজর গিফারী প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানান, প্রতি রোববার এই এলাকার সব মার্কেট বন্ধ থাকে। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হাজী মার্কেটের তৃতীয় তলায় ধোঁয়া দেখেন স্থানীয়রা। কিছুক্ষণের মধ্যেই দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে।

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মার্কেটে লাগা আগুন প্রায় তিন ঘণ্টা পর নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক মোহাম্মদ মোবারক আলী ঘটনাস্থল থেকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

উপজেলা পরিষদের সামনে রোববার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হাজী মার্কেটের তৃতীয় তলায় আগুন লাগে।

ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা মো. আবুজর গিফারী জানান, মার্কেটের তৃতীয় তলায় জুতা ও প্লাস্টিকের দোকান আছে। সেখানেই আগুন লেগেছে। ফায়ার সার্ভিসের ৫টি ইউনিট সেখানে কাজ করেছে; সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে আগুন নেভানো গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে তিনি জানান, প্রতি রোববার এই এলাকার সব মার্কেট বন্ধ থাকে। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে হাজী মার্কেটের তৃতীয় তলায় ধোঁয়া দেখেন স্থানীয়রা। কিছুক্ষণের মধ্যেই দাউ দাউ করে আগুন জ্বলে ওঠে। স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়।

আগুনের ঘটনায় কেউ হতাহত হননি জানিয়ে এই কর্মকর্তা বলেছেন, এর সূত্রপাত এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

জেলা প্রশাসক (ডিসি) মোহাম্মদ শামীম আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি জানান, আগুন লাগার কারণ অনুসন্ধানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সাদেকুর রহমান সবুজকে প্রধান করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী ৩ দিনের মধ্যে এ কমিটি রিপোর্ট জমা দেবে।

আরও পড়ুন:
গাজীপুরে পোশাক কারখানার গুদামে আগুন
মানববন্ধনে তাজরীন ট্র্যাজেডিসহ শ্রমিক ‘হত্যাকাণ্ডের’ বিচার দাবি
চট্টগ্রামে বাটার শোরুমের আগুন নিয়ন্ত্রণে
চীনে কারখানায় আগুন, নিহত ৩৬
আগুনে দগ্ধ ছেলের মৃত্যু, বাবার মামলায় মা গ্রেপ্তার

মন্তব্য

p
উপরে