× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
EC announced the possible date of polling in Rangpur City
hear-news
player
google_news print-icon

রংপুর সিটিতে ভোটের সম্ভাব্য তারিখ জানাল ইসি

রংপুর-সিটিতে-ভোটের-সম্ভাব্য-তারিখ-জানাল-ইসি
রসিক ভবনের ফটক। ছবি: সংগৃহীত
ইসি মো. আলমগীর বলেন, ‘ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির শুরুতে রংপুরের নির্বাচন হতে পারে। সে ক্ষেত্রে নভেম্বরে তফসিল ঘোষণা করা হবে, তবে আমরা নির্বাচনটা সময়ের মধ্যেই করতে চাই। কোনোভাবে সময় শেষের দিকে করতে চাই না।’

চলতি বছরের ডিসেম্বরের শেষে অথবা আগামী বছরের জানুয়ারির শুরুর দিকে রংপুর সিটি করপোরেশনের (রসিক) ভোট হতে পারে বলে জানিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার (ইসি) মো. আলমগীর।

আগামী মাসেই এ ভোটের তফসিল ঘোষণা হতে পারে বলে জানান তিনি।

ইসি আলমগীর জানান, রংপুরের ভোটেও ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ও সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহারের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়েছে।

রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে রোববার নিজ কার্যালয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

মো. আলমগীর বলেন, ‘ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির শুরুতে রংপুরের নির্বাচন হতে পারে। সে ক্ষেত্রে নভেম্বরে তফসিল ঘোষণা করা হবে, তবে আমরা নির্বাচনটা সময়ের মধ্যেই করতে চাই। কোনোভাবে সময় শেষের দিকে করতে চাই না।’

রংপুরে ইভিএম ও সিসিটিভি ক্যামেরা থাকবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে এই কমিশনার বলেন, ‘সেটা কমিশনের সভায় সিদ্ধান্ত হবে। এখনই বলা যাবে না, তবে কমিশনের এগুলো ব্যবহারের একটা প্রাথমিক সিদ্ধান্ত রয়েছে।’

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সর্বশেষ রংপুর সিটিতে নির্বাচন হয়েছিল ২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর। করপোরেশনের প্রথম সভা হয়েছিল ২০১৮ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি।

যেহেতু কোনো সিটির মেয়াদ ধরা হয় প্রথম সভা থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর, তাই এ সিটিতে নির্বাচিতদের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

সিটি করপোরেশন নির্বাচন আইন অনুযায়ী, কোনো সিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে ১৮০ দিনের মধ্যে ভোট গ্রহণ করতে হয়। এ ক্ষেত্রে এ সিটি নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হয়েছে গত ১৯ আগস্ট থেকে।

সিসিটিভি ক্যামেরা ও ইভিএম ব্যবহারে অনেকের আপত্তি আছে। এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ইসি আলমগীর বলেন, ‘আমরা কার আপত্তি আছে কী নাই, সেটা নিয়ে ভাবছি না। আমরা ভাবছি কী দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। আমাদের অবস্থান হচ্ছে যতগুলো সিটি করপোরেশন নির্বাচন হবে, সেখানে আমরা ইভিএম ও সিসিটিভি ক্যামেরা দেয়ার চেষ্টা করব, তবে প্রতিটা নির্বাচনের জন্য আলাদা আলাদা সভায় তখন এই সিদ্ধান্তগুলো নেয়া হয়।’

জাতীয় নির্বাচনে ৩০০ আসনে সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করবেন কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সিসি ক্যামেরা নয়, আমাদের রোডম্যাপের বলা আছে, প্রযুক্তি সর্বোচ্চ ব্যবহার করা হবে। সম্ভব হলে আমরা সবগুলোতেই সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করব, তবে আমরা মনে করি সিসি ক্যামেরা হলে অনিয়ম ধরাটা সহজ হবে। বাইরের অনিয়ম সবাই দেখে, কিন্তু ভেতরের অনিয়ম তো সবাই দেখতে পারে না।

‘এটা অবশ্যই ভালো। সঠিক অপরাধীকে ধরার ও নিরাপত্তার জন্যই সিসিটিভি ক্যামেরা ব্যবহার করা হচ্ছে। সিসি ক্যামেরা থাকলে অপরাধীরা সতর্ক থাকে। ফলে অপরাধ নিয়ন্ত্রণ সহজ হয়।’

আরও পড়ুন:
গাইবান্ধা ভোট: প্রতিবেদন দিতে আরও ৩ দিন চাইল কমিটি
গাইবান্ধা-৫ আসনের বাতিল ভোট সুষ্ঠু, তবু দাবি ডিসি-এসপির
গাইবান্ধা উপনির্বাচনে অনিয়ম: আজ শেষ হচ্ছে তদন্ত কার্যক্রম
ভোট বন্ধে ইসির সিদ্ধান্তে সাবেকদের সমর্থন
ভোট বন্ধের ক্ষমতা আগে প্রয়োগ হলে রাজনীতি ভিন্ন হতো: সাখাওয়াত

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
It will be murder case DC Ramana

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: ডিসি রমনা

এটি হত্যাকাণ্ড, মামলা হবে: ডিসি রমনা নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে চালককে আটকে পিটুনি দেয় পথচারীরা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
পুলিশের রমনা বিভাগের ডিসি শহীদুল্লাহ বলেন, ‘যেহেতু এটা মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা, তাই আমরা একটা মামলা নেব। গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি। সড়ক আইন অনুযায়ী রেকলেস ড্রাইভিংয়ে মৃত্যু ঘটনার শাস্তির বিধান আছে। এই আইনে তার যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয়, সেটি আমরা চেষ্টা করব।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে নারীকে প্রাইভেট কারের নিচে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যাওয়ার ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলে উল্লেখ করেছে পুলিশ।

এ ঘটনায় মামলা হবে জানিয়ে রমনা বিভাগের ডিসি শহীদুল্লাহ বলেন, ‘এটি অবশ্যই একটি হত্যাকাণ্ড।’

শুক্রবার রাতে শাহবাগ থানায় সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ডিসি শহীদুল্লাহ্ বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, ওই নারী দেবরের সঙ্গে মোটরসাইকেলে করে শ্বশুরবাড়ি থেকে বাবার বাড়ি হাজারীবাগে যাচ্ছিলেন। তারা যখন শাহবাগ থেকে টিএসসির আগে কাজী নজরুলের মাজারের উল্টো দিকের রাস্তায় পৌঁছান, তখন প্রাইভেট কারটি মোটরসাইকেলে ধাক্কা দেয়। এতে ওই নারী সড়কে পড়ে যান ও প্রাইভেট কারের সঙ্গে আটকে যান।

‘তবে চালক গাড়িটি না থামিয়ে টেনে-হিঁচড়ে তাকে নিয়ে যান। অনেক চেষ্টা করেও তাকে থামানো যায়নি। উনি টিএসসি পৌঁছালে আমাদের মোবাইল টিমও তাকে থামানোর চেষ্টা করে। তারপরও উনি গাড়ি না থামিয়ে নীলক্ষেত মোড়ের দিকে চলে যান। পরে উত্তেজিত জনতা তাকে থামায়।’

তিনি বলেন, ‘গাড়ির চালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক। উত্তেজিত জনতার পিটুনিতে তার অবস্থাও সঙ্কটাপন্ন।’

ডিসি আরও বলেন, ‘যেহেতু এটা মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা, তাই আমরা একটা মামলা নেব। গাড়িটি জব্দ করা হয়েছে। আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘সড়ক আইন অনুযায়ী রেকলেস ড্রাইভিংয়ে মৃত্যু ঘটনার শাস্তির বিধান আছে। এই আইনে তার যাতে সর্বোচ্চ শাস্তি হয়, সেটি আমরা চেষ্টা করব।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার পর আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ওই শিক্ষকের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেছি। একটা নম্বর পেয়েছি। তবে ঘটনা জানাতে যোগাযোগের পর থেকে মোবাইল ফোন নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। তাদের কারও সঙ্গে যোগাযোগের সুযোগ পেলে সাবেক ওই শিক্ষক সুস্থ নাকি অসুস্থ ছিলেন সে বিষয়ে জানা যেত।’

নিহতদের পক্ষে এখন পর্যন্ত কেউ মামলা করতে আসেননি জানিয়ে ডিসি শহীদুল্লাহ্ বলেন, ‘উনারা হয়তো ব্যস্ত আছেন। কিছুক্ষণ পর আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।’

এ বিষয়ে দুর্ঘটনার শিকার নারীর পরিবারকে সর্বোচ্চ আইনগত সহযোগিতা দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

দুর্ঘটনায় প্রাণ হারানো নারী রুবিনা আক্তার তিনি গৃহবধূ ছিলেন। থাকতেন তেজগাঁওয়ে। তার ১২ বছরের একটি ছেলে আছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন।

অন্যদিকে গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক আজাহার জাফর শাহ।

আরও পড়ুন:
টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি
মতিঝিলে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
বাবা-ছেলেকে পিষ্ট করে হোটেলে কাভার্ড ভ্যান, নিহত ৫
বাসচাপায় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী নিহত
মেয়েকে মাদ্রাসায় দিতে গিয়ে বাসচাপায় মা-বাবাও নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The age limit of BCL remains thirty nine

ছাত্রলীগের বয়সসীমা ‘উনত্রিশ’ই থাকছে

ছাত্রলীগের বয়সসীমা ‘উনত্রিশ’ই থাকছে ছবি: সংগৃহীত
চার বছর পর ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন। এই সম্মেলনকে কেন্দ্র করে আবারও আলোচনায় এসেছে ছাত্রলীগের বয়সসীমার বিষয়টি।

ছাত্রলীগের নেতৃত্বের বয়সসীমা ঊনত্রিশই থাকছে। সংগঠনটির অভিভাবক দল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের গত বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্টদের বিষয়টি স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের বিশ্বস্ত সূত্র নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র জানায়, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে প্রতিদিনের মতো অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বসেন দলটির নেতারা। আলাপচারিতার এক পর্যায়ে ওবায়দুল কাদের অন্য নেতাদের জানিয়ে দেন, দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে তার আলোচনা হয়েছে। ছাত্রলীগের নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের বয়সসীমা এবারও ঊনত্রিশই থাকছে। কোনোভাবেই তা বাড়ানো হবে না।

সূত্রমতে, বৈঠকে ছাত্রলীগের দেখভালের দায়িত্বে থাকা চার নেতার মধ্যে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম উপস্থিত ছিলেন। তারা বয়সসীমার বিষয়ে কিছুটা আপত্তির সুর তুললে ওবায়দুল কাদের স্পষ্ট জানিয়ে দেন- দলের সভাপতি কোনোভাবেই ছাত্রলীগকে আদু ভাইদের দল বানাতে চান না।

এ অবস্থায় সংশ্লিষ্ট নেতারা দলের সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে এ নিয়ে পরে বৈঠক করতে চান।

প্রসঙ্গত, চার বছর পর আগামী ৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন।

সম্মেলনকে ঘিরে দৌড়ঝাঁপ শুরু করেছেন সংগঠনটির শীর্ষ পদপ্রত্যাশীরা। দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই লবিং-তদবিরের ব্যস্ততা বাড়ছে এসব নেতার। শীর্ষ পদে কারা আসছেন এ নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা। আর বয়সসীমার বিষয়টি পরিষ্কার না থাকায় প্রার্থীদের অনেকের মধ্যেই এ নিয়ে ধোঁয়াশা বিরাজ করছে। তারা এখন আশা-নিরাশার দোলাচলে। কেননা আলোচিত প্রার্থীদের বেশিরভাগই ঊনত্রিশোর্ধ্ব।

সংগঠনটির গঠনতন্ত্রের ৫-এর ক অনুচ্ছেদ অনুযায়ী, সর্বোচ্চ বয়সসীমা ২৭ থাকলেও ২৮ বছর ৩৬৫ দিনের মধ্যে নেতৃত্ব বাছাই করা হয়। মূলত, যথাসময়ে সম্মেলন না হওয়ার কারণেই ছাত্রলীগের নেতৃত্ব প্রত্যাশীরা এই ছাড় পেয়ে থাকেন।

ছাত্রলীগের সর্বশেষ সম্মেলন ২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেই সম্মেলনে অনূর্ধ্ব ২৯ বছর বয়সী রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি ও গোলাম রব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। পরে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চাঁদাবাজিসহ বিভিন্ন অভিযোগে ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর দুজনকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়। তখন ওই কমিটির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয়কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং জ্যেষ্ঠ যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করা হয়। ২০২০ সালের ৪ জানুয়ারি তাদের পূর্ণাঙ্গ দায়িত্ব দেয়া হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শাসক দল আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপপ্রতীম সংগঠন ছাত্রলীগের দুই শীর্ষ পদ পেতে আগ্রহীরা হলেন সহ-সভাপতি শেখ সাগর আহমেদ, সোহান খান, ইয়াজ আল রিয়াদ, সৈয়দ আরিফ হোসেন, মাজহারুল ইসলাম শামীম, কামাল খান, রাকীব হোসেন, মাহমুদুল হাসান তুষার, ফরিদা পারভীন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকদের মধ্য থেকে প্রদীপ চৌধুরী, আরিফুজ্জামান আল ইমরান, তাহসান রাসেল, বেনজীর নিশি, সাংগঠনিক সম্পাদক ফোরদৌস আলম, বরিকুল ইসলাম বাঁধন, সোহানুর রহমান সোহান, সাদ বিন কাদের, নাজিমুদ্দিন, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক হায়দার মোহাম্মদ জিতু, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক হোসাইন সাদ্দাম, ত্রাণ ও দূর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক এমরান জমাদ্দার, শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ লিমন, স্কুলছাত্র বিষয়ক সম্পাদক প্রতুল চন্দ্র রায়, ক্রীড়া সম্পাদক আলামিন সিদ্দিক সুজন, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু হাসনাত হিমেল, মানব সম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহীন, আইন সম্পাদক ফুয়াদ হাসান শাহাদৎ, গণশিক্ষা সম্পাদক আব্দুল্লাহ হিল বারী, গণযোগাযোগ সম্পাদক শেখ শামীম তুর্য, কর্মসংস্থান বিষয়ক সম্পাদক রনি মোহাম্মদ, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক মেহেদী হাসান তাপস, পরিবেশ সম্পাদক শামীম পারভেজ, ধর্ম সম্পাদক তুহিন রেজা, উপ-দপ্তর সম্পাদক সজীব নাথ, উপ-তথ্য প্রযুক্তি সম্পাদক আহসান পিয়াল, এস এম হলের সাবেক সভাপতি কামাল হোসেন ওরফে ভিপি কামাল উল্লেখযোগ্য।

ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, আলোচিত প্রার্থীদের মধ্যে সোহান খান, প্রদীপ চৌধুরী, ইয়াজ আল রিয়াদ, সৈয়দ আরিফ হোসেন ও কামাল খান ত্রিশোর্ধ্ব। আর সাদ বিন কাদের মেহেদী হাসান তাপস আবু হাসনাত হিমেল শামীম পারভেজ, নাজিমুদ্দিন, নাহিদ হাসান শাহীন, তুহিন রেজা, আব্দুল্লাহ হিল বারী, বরিকুল ইসলাম বাঁধন, রনি মোহাম্মদ, ফুয়াদ হাসান শাহাদৎ এর বয়স ৩০ এর মধ্যে।

এ ছাড়া ফরিদা পারভীন, এমরান জমাদ্দার, প্রশিক্ষণ বিষয়ক উপ সম্পাদক মেশকাত হোসেন, কামাল হোসেন ওরফে ভিপি কামাল, জিয়া হল শাখার সাধারণ সম্পাদক হাসিবুল হাসান শান্ত, মুহসিন হল ছাত্রলীগের সভাপতি শহিদুল হক শিশিরের বয়স ২৯ এর মধ্যে।

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগের বহরে বিস্ফোরণ: যুবদল নেতাসহ ১২ জনের নামে মামলা
ছাত্রলীগ নেতাকে বাড়ি থেকে বের করে পিটুনি
ছাত্রলীগের মোটরসাইকেল বহরে ককটেল হামলা
এমপির ছেলের সভায় ককটেল বিস্ফোরণ
ঢাবি ছাত্রলীগের সম্মেলন ৩ ডিসেম্বর, দুই মহানগরের ২ ডিসেম্বর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A woman riding a rickshaw was killed after being hit by a private car in DU

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি

টিএসসিতে চাপা দিয়ে নারীকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে নিল গাড়ি নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত থেকে টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে চালককে আটকে পিটুনি দেয় পথচারীরা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
এক নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা গেছে, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে বাঁধিয়ে ওই নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কার। এক পর্যায়ে চালককে আটকায় পথচারীরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে নারীকে রিকশা থেকে ফেলে টিএসসি থেকে নীলক্ষেত পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে গেছে একটি প্রাইভেট কার।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকের এ ঘটনায় আহত ওই নারীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে কিছুক্ষণ পর তার মৃত্যু হয়।

নিহত ৪৫ বছর বয়সী নারীর নাম রুবিনা আক্তার। তিনি গৃহবধূ ছিলেন; থাকতেন তেজগাঁওয়ে। তার ১২ বছরের এক ছেলে আছে। দুই বছর আগে তার স্বামী মারা গেছেন।

ঢামেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া নিউজবাংলাকে এসব নিশ্চিত করেছেন।

ওই নারীকে সড়ক দিয়ে টেনে নেয়ার ভিডিও ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এতে দেখা যায়, গাড়ির বাম পাশে সামনের চাকার পেছনে আটকে পড়া নারীকে টেনে নিয়ে যাচ্ছে প্রাইভেট কারটি। এক পর্যায়ে গাড়িটিকে আটকায় পথচারীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিম জানায়, গাড়িচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সাবেক সহযোগী অধ্যাপক; নাম আজাহার জাফর শাহ।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী টিএসসির একাধিক ভ্রাম্যমাণ দোকানদার নিউজবাংলাকে জানায়, একটি রিকশায় ওই নারী শাহবাগ থেকে টিএসসির দিকে আসছিলেন। এ সময় পেছন থেকে একটি প্রাইভেট কার রিকশাকে ধাক্কা দিলে, তিনি পড়ে যান। নারীকে চাপা দেয়ার পর চালক গাড়ি না থামিয়ে চালিয়ে যেতে থাকেন। আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামানোর চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন।

চাপা পড়া নারীকে হিঁচড়ে নীলক্ষেত মোড় পর্যন্ত নিয়ে যাওয়া হয়। এক পর্যায়ে আশপাশের লোকজন গাড়িটিকে থামাতে সক্ষম হন।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত এক রিকশাচালক নিউজবাংলাকে জানান, নারীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়ে গাড়ির চালককে ইট দিয়ে আঘাত করে লোকজন। তাকে ৩-৪ মিনিট মারধর করা হয়। পরে পুলিশ চালককে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়।

ঘটনাস্থলে থাকা শাহবাগ থানা পুলিশের উপপরিদর্শক জাফর বলেন, ‘একজন নারী কার দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। কারচালককে উত্তেজিত জনতা আটক করে পিটিয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ঢাবির হলে শিক্ষার্থীকে রড দিয়ে পিটিয়েছে ছাত্রলীগের কর্মী
ঢাবি প্রক্টরের বিরুদ্ধে ‘গুরুতর’ অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Has peace returned to the mountains in 25 years?

২৫ বছরে শান্তি কি ফিরেছে পাহাড়ে?

২৫ বছরে শান্তি কি ফিরেছে পাহাড়ে? পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তি চুক্তির ২৫ বছরেও হয়নি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন। ফাইল ছবি
পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি ভেঙে এখন চারটি সংগঠন। তাদের মধ্যে মারামারি লেগে আছে। ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত পাহাড়ে ৫৩৬ জন অপহরণ এবং ৩৭৬ জন হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। পার্বত্যাঞ্চলে প্রতি বছর প্রায় ৪০০ কোটি টাকার চাঁদাবাজি হয়ে থাকে।

পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তির ২৫ বছরেও বন্ধ হয়নি রক্তপাত। হয়নি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন। সরকার বলছে, শান্তিচুক্তির কারণে পার্বত্য এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে।

পার্বত্য এলাকায় নৃগোষ্ঠীর রাজনৈতিক অধিকারের দাবিতে দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে চলে সহিংসতা। গড়ে ওঠে শান্তি বাহিনী নামের একটি সশস্ত্র সংগঠন। সংঘাতে অসংখ্য পাহাড়ি-বাঙালি নিহত-আহত হন। একসময় পাহাড় ছিল আতঙ্কের নাম।

শান্তি প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের সঙ্গে জ্যোতিরিন্দ্র বোধিপ্রিয় লারমা ওরফে সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এ সময় অস্ত্র জমা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরেন শান্তি বাহিনীর প্রায় ২ হাজার সদস্য। শান্তি ফিরতে শুরু করে পাহাড়ে।

এ চুক্তি পার্বত্যাঞ্চলের জনগণের বিশেষ মর্যাদা ও অবস্থানের স্বীকৃতি নিশ্চিত করেছে। চুক্তিটি চার খণ্ডে বিভক্ত, যেখানে ক খণ্ডে চারটি; খ খণ্ডে ৩৫টি; গ খণ্ডে ১৪টি এবং ঘ খণ্ডে ১৯টি অর্থাৎ মোট ৭২টি ধারা রয়েছে। অবশ্য অল্প সময়ের মধ্যে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে, যদিও সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, চুক্তির ৭২টির মধ্যে ৬৫টিরও বেশি শর্ত পূরণ করা হয়েছে।

২৫ বছরে শান্তি কি ফিরেছে পাহাড়ে?

সরকার বলছে, শান্তি চুক্তির কারণে পার্বত্য এলাকায় উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। ফাইল ছবি

পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং নিউজবাংলাকে বলেন, ‘একসময় এ এলাকায় মানুষ যেতে চাইত না। সরকারি কর্মকর্তারা সেখানে বদলি হলে তাদের মধ্যে একটা আতঙ্ক থাকত যে আমি কোথায় যাব? এখন কিন্তু সেখানে সবাই যেতে চায়। এটা এখন আর শাস্তির এলাকা নেই। প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের কারণে সেখানে একটি আমূল পরিবর্তন এসেছে। এখানে এখন প্রতি বছর হাজার হাজার পর্যটক আসছেন। এ উদ্যোগের কারণে মানুষের মধ্যে উন্নয়ন হয়েছে। যোগাযোগ, শিক্ষা, বিদ্যুৎ, স্বাস্থ্য, কৃষি প্রতি ক্ষেত্রে উন্নয়ন হয়েছে।

‘সেখানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় হয়েছে, মেডিক্যাল কলেজ হয়েছে। তিন জেলায় প্রায় ২৬টি উপজেলার প্রত্যেকটিতে কলেজ হয়েছে, স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বা হাসপাতাল হয়েছে। স্কুলগুলো এমপিওভুক্ত হয়েছে, অনেক স্কুল সরকারিকরণ হয়েছে। প্রত্যেক উপজেলাতেই বিদ্যুৎ পৌঁছেছে। একদম রিমোট যে এলাকাগুলো রয়েছে, সেগুলোতেও বিশেষ ব্যবস্থায় ৫২ হাজার সোলার সিস্টেম বিনা পয়সায় বিতরণ করেছি। এই চুক্তির ফসলই হলো এই উন্নতি। চুক্তির যে ধারাগুলো রয়েছে ৭২টি, এর মধ্যে ৬৫টিরও বেশি বাস্তবায়ন হয়েছে। আশা করি, এগুলোও বাস্তবায়ন হবে।’

যে জনসংহতি সমিতির নেতৃত্বে শান্তি বাহিনী গড়ে উঠেছিল, সেটির শক্তিও অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। সংগঠনটি এখন চার থেকে পাঁচটি গ্রুপে বিভক্ত। বিভিন্ন সময়েই এই গ্রুপের সদস্যরা একে অন্যের ওপর হামলা চালিয়ে সংবাদের শিরোনাম হয়েছেন।

সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, শান্তি চুক্তির অন্যতম শর্ত অস্ত্র সমর্পণ গত ২৫ বছরেও পূরণ হয়নি। এসব অবৈধ অস্ত্র দিয়ে সশস্ত্র দলগুলো স্থানীয় পর্যায়ে অপহরণ, হত্যা ও চাঁদাবাজিতে ব্যবহার হয়ে থাকে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হিসাবে, পার্বত্যাঞ্চলে প্রতি বছর প্রায় ৪০০ কোটি টাকার চাঁদাবাজি হয়ে থাকে। ২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত পাহাড়ে ৫৩৬ জন অপহরণ এবং ৩৭৬ জন হত্যাকাণ্ডের শিকার হন।

২৫ বছরে শান্তি কি ফিরেছে পাহাড়ে?

২০১৪ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত পাহাড়ে ৩৭৬ জন হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। ফাইল ছবি

বিভিন্ন সময় পাহাড়ে রক্তপাত হয়, এটা কি চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ার জন্য? জানতে চাইলে বীর বাহাদুর উশৈসিং বলেন, ‘সেখানে কি যুদ্ধাবস্থা আছে? যারা এগুলো করছে তারা কি এটা বলছে যে চুক্তি বাস্তবায়ন না হওয়ায় এগুলো হচ্ছে? এটা তো বলছে না। এটা সিম্পলি, তাদের মধ্যে অনেক গ্রুপিং। এটা হলো চাঁদাবাজি, কিডন্যাপিং… এটা হলো অর্থ উপার্জন বা চাঁদাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে গোলাগুলি, কাটাকাটি হয়।

‘কিন্তু এগুলো হলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনী তৎপর আছে। চুক্তি বাস্তবায়ন তো যুদ্ধের মাধ্যমে হবে না। হয়নি বলেই তো আমরা একটি জায়গায় এসেছি। হয়তো একটু দেরি হচ্ছে, কিন্তু থেমে তো নেই। চুক্তি বাস্তবায়নের সঙ্গে এগুলোর কোনো সম্পর্ক নেই। এখানে তো কথা বলার সুযোগ আছে। এ জন্য আমরাও দাবি করছি যে, অবৈধ অস্ত্র যেন উদ্ধার করা হয়। সেখানে সবাইকে বলব, সন্ত্রাস করে এলাকায় শান্তি ফিরবে না। সম্মিলিত প্রয়াস থাকতে হবে।’

পাহাড়ে একের পর এক সংগঠন

শান্তি চুক্তিকে কালো চুক্তি হিসেবে আখ্যায়িত করে প্রসিত বিকাশ খীসার নেতৃত্বে ১৯৯৮ সালে আত্মপ্রকাশ করে ইউনাইটেড পিপল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট (ইউপিডিএফ) নামে একটি দল। পাহাড়ে বেড়ে যায় পিসিজেএস ও ইউপিডিএফের মধ্যে ব্যাপক সংঘাত। এতে পাহাড়ের দলীয় কর্মীসহ সাধারণ মানুষও প্রাণ হারান।

২০০৭ সালে জনসংহতি সমিতি আবার ভেঙ্গে জন্মলাভ করে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি (এমএন লারমা সংস্কারপন্থি) নামে আরেকটি আঞ্চলিক দল। ইউপিডিএফ ভেঙ্গে ২০১৭ সালে ১৫ নভেম্বর তপন জ্যোতি চাকমার নেতৃত্বে খাগড়াছড়িতে গঠিত হয় ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) নামে আরেক আঞ্চলিক সংগঠন। বিশেষ করে রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি জেলায় এ চারটি সংগঠনের আধিপত্য লক্ষ্য করা যায়। বান্দরবানেও পিজেএসএসের আধিপত্য।

দুর্গম এ পাহাড়ি অঞ্চলে চার সংগঠনের মধ্যে হানাহানি লেগে আছে। তবে পিজেএসএস অভিযোগ, সরকারের শাসকগোষ্ঠীর ষড়যন্ত্রে পাহাড়ে এসব আঞ্চলিক দলের সৃষ্টি হয়েছে।

এ চার সংগঠনের বাইরেও সক্রিয় আছে বেশ কয়েকটি গ্রুপ। এর মধ্যে বান্দরবানের গহীন জঙ্গলে অবস্থান রয়েছে আরাকান লিবারেশন পার্টির (এএলপি)। পরবর্তী সময়ে এটি ভেঙে ২০১৮ সালে গঠিত হয় মগ পার্টি।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান ও সাবেক রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা বলেন, ‘এক পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে শান্তি চুক্তির অনেকটা এখনও বাস্তবায়ন হচ্ছে না। অন্যদিকে বাস্তবায়ন কমিটি থেকে বলা হচ্ছে, আমরা অধিকাংশ বাস্তবায়ন করেছি। সে ক্ষেত্রে আমার মনে হয় যে, বাকি ধারাগুলো বাস্তবায়নে দুই পক্ষকে এগিয়ে আসতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বারবার বলে যাচ্ছেন, আমরা শান্তিচুক্তি করেছি, আমরাই বাস্তবায়ন করব। তিনি সবসময় বলেছেন, চুক্তির যে রূপরেখা ছিল, প্রত্যেকটি আমরা বাস্তবায়ন দেখতে চাই।’

পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (পিসিজেএসএস) নেতা এবং সাবেক সাংসদ ঊষাতন তালুকদার বলেন, ‘সরকারের সাথে আমাদের বোঝাবুঝির অভাব রয়েছে। সরকারের কী ভাবনা সেটা পরিষ্কার হওয়া দরকার। সরকার যতই সময় ক্ষেপন করবে ততই দলবাজি, নানান অস্ত্রবাজি হবে, নানা চাঁদাবাজি হবে। তখন পরিস্থিতি আরো জটিল হবে। মূল কথা হচ্ছে পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন করা ছাড়া বিকল্প নেই।’

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘ভূমি কমিশন আইন তো ঠিকমত হয়েছে। এখন বিধিমালা তো সরকার করছে না। বিধিমালাটা করে ভূমি কমিশন কার্যকর করেন। সরকারের কিছু কিছু গাড়ি আছে, গাড়ির অনুমোদন আছে, কিন্তু গাড়ি নাই। ঠিক তেমনি এখন ভূমি কমিশন চলতে পারে না। আমরা চুক্তির সব একসঙ্গে বাস্তবায়ন চাচ্ছি না। একটা একটা করেন। কোনটা কখন করবেন, কখন কোন বিষয় বাস্তবায়ন করবেন, তা লিখিতভাবে সরকার জানিয়ে দিক এবং সেভাবে কর্মসূচি গ্রহণ করুক এবং সেটাই হবে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির রোডম্যাপ।’

পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি স্বাক্ষরকারী খাদ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাঙামাটি জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি বলেন, ‘আমরা রোডম্যাপ করতে চাচ্ছি না তা বলব না। কিন্তু রোডম্যাপ হলেই যে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়িত হবে এটার কোনো গ্যারিন্টি আছে? শান্তিচুক্তির বাস্তবায়ন আমরাও চাই, তারাও চায়, এমনকি প্রধানমন্ত্রীও এ ক্ষেত্রে খুবই আন্তরিক। সে ক্ষেত্রে আমাদের উভয়ের বোঝাপোড়ায় আসতে হবে। কিন্তু এগুলো হচ্ছে না।’

দীপংকর তালুকদার এমপি আরও বলেন ‘শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন করতে গেলে উভয় পক্ষকে শক্তিশালী হতে হবে এবং উভয় পক্ষকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। কিন্তু আমরা দেখছি শান্তিচুক্তির স্বাক্ষরকারী আওয়ামী লীগ রাঙ্গামাটি-বান্দরবান-খাগড়াছড়ি এ তিন জেলার যতগুলো আওয়ামী লীগের লোক আছে, তাদের বলা হচ্ছে আওয়ামী লীগ করা যাবে না। আওয়ামী লীগকে যদি নিশ্চিহ্ন করে দেয় তারা, তাহলে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়ন করবে কে? যার কারণে একে অপরের প্রতি আস্থা, বিশ্বাসের সংকটটা তৈরি হয়েছে। এ ক্ষেত্রে সবাইকে ইতিবাচক ভূমিকা নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে, তবেই শান্তিচুক্তি বাস্তবায়িত হবে।’

আরও পড়ুন:
জঙ্গিবিরোধী অভিযান : চট্টগ্রামের পাহাড়ি এলাকায় পর্যটক নিষিদ্ধ
প্রকল্প শেষে কী হবে পাহাড়ের ৪ হাজার কর্মীর
পাহাড়ে শান্তির কপোত কি অধরা?

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Pistols hidden in Kishori Ranis rice bowl

কিশোরী রানীর ভাতের পাতিলে লুকানো পিস্তল-গুলি

কিশোরী রানীর ভাতের পাতিলে লুকানো পিস্তল-গুলি ভাতের ভেতর পিস্তল ও গুলি লুকিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে পৌঁছে দেয়াসহ মুক্তিযুদ্ধের সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিভিন্নভাবে সহায়তা করেছেন গৃহবধু কিশোরী রানী শর্মা। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
কুমিল্লার গৃহবধূ কিশোরী রানী শর্মা মুক্তিযুদ্ধের সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যোদ্ধাদের সাহায্য করেছেন। পাড়ি দিয়েছেন শত্রু এলাকা। তার স্বামী মুক্তিযোদ্ধাদের অস্ত্র সারাই করে দিতেন। তাদের মেলেনি মুক্তিযুদ্ধের স্বীকৃতি।

ভারতের সোনামূড়া। ডিসেম্বর শুরু। শীতের সন্ধ্যা। চারদিকে আবছা কুয়াশা। রান্নার পাতিলে ভাতের ভেতর পিস্তল ও গুলি লুকিয়ে মুক্তিযোদ্ধারের কাছে যাচ্ছিলেন এক গৃহবধূ।

পথে আচমকা পাকিস্তানিরা দূর থেকে গুলি চালায়। গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনি পড়ে যান গোমতী নদীতে। স্রোতের টানে ভেসে যান অনেকদূর। মৃত ভেবে পাকিস্তানিরা চলে যায়। ঘটনার পর মুক্তিযোদ্ধারা আসেন। উদ্ধার করেন ওই গৃহবধূকে। ক্যাম্পে নিয়ে গুলি বের করেন। বাম কনুইয়ের ওপর গুলির দাগ আজও সেই বিভীষিকাময় দিনগুলোর কথা মনে করে দেয়।

গৃহবধূর নাম কিশোরী রানী শর্মা। তার স্বামী অরুণপ্রসাদ শর্মাও মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। অস্ত্র তৈরি করা, বিকল অস্ত্র ঠিক করার দায়িত্ব ছিল অরুণপ্রসাদ শর্মার ওপর। স্বাধীনতার ৫৩ বছর পরও স্বামী-স্ত্রীর রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলেনি। মনের ভেতর কষ্ট নিয়েই বছর দশেক আগে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান অরুণপ্রসাদ।

কিশোরী রানী শর্মার বাড়ি কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার মধ্যম বিজয়পুরে। তার এক ছেলে এক মেয়ে। বছরচারেক আগে কিশোরী রানীর একমাত্র ছেলে বাসুপ্রসাদ শর্মা ট্রেন দুর্ঘটনায় মারা যান। এক মেয়ে বিজয়পুর মৃৎশিল্প কারখানার কাজ করেন। ৫ হাজার টাকা বেতন। এই টাকা দিয়ে কোনো রকমে খেয়ে-পড়ে বেঁচে আছেন তারা।

সরেজমিনে মধ্যম বিজয়পুরে গিয়ে দেখা যায়, কিশোরী রানীর বাড়ির সামনে একটি খাল। নড়বড়ে সাঁকো পার হয়ে সামনে গেলে ছোট্ট একটি টিনের ঘরে শুয়ে থাকতে দেখা যায় কিশোরী রানী শর্মাকে।

শোয়া থেকে উঠে ভাঙা কণ্ঠে কিশোরী রানী জানান, ১৯৩৭ সালে তার জন্ম। জাতীয় পরিচয়পত্রে তারিখটা লেখা ৬ মে। তিনি বলেন, ‘আমার স্বামী অরুণপ্রসাদ অস্ত্র বানাতে পারতেন। ভাঙা অস্ত্র ঠিক করতে পারতেন। তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা হয়েও স্বীকৃতি পাননি। ১০ বছর হলো তিনি মারা গেছেন।’

স্মৃতির ঝাঁপি খুলে কিশোরী রানী বলেন, ‘শীতের রাতে কতবার বিবিরবাজার বর্ডার ক্রস করে ভারতের সোনামুড়া গেছি। সেখানে যুদ্ধের প্রশিক্ষণ হতো। প্রতিবার পাকিস্তানিদের চোখ ফাঁকি দিতে কত কৌশলের আশ্রয় নিয়েছি। গুলি খেয়ে নদীতে পড়ে গেছি। তবুও মুক্তিযুদ্ধ করে গেছি।

‘আমরা মেজর এনামের নেতৃত্বে যুদ্ধ করেছি। অথচ আজ আমাদের স্বামী-স্ত্রীর কোনো রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি নেই। আমার ছেলেটা মারা গেল। একমাত্র মেয়ে আর ছেলের ঘরের নাতি-নাতনিদের নিয়ে কোনো রকমে বেঁচে আছি। কেউ আমাদের খবর রাখে না। আমার স্বামী বেঁচে থাকতে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতির জন্য আবেদন করেছিল। আমিও করেছি। কেউ আমাদের স্বীকৃতি দেয় না।’

বিষয়টি নিয়ে কুমিল্লা জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সফিউল আহমেদ বাবুল বলেন, ‘ভারতীয় তালিকা, দেশের গেজেট ও লাল তালিকায় কিশোরী রানী ও তার স্বামী অরুণের নাম নেই। তাই তাদের মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি দেয়া যাচ্ছে না। তবে তারা যদি মন্ত্রণালয় বা জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) কাছে গিয়ে প্রমাণ করতে পারেন, সে ক্ষেত্রে তাদের নাম গেজেটে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে।’

কিশোরী রানী শর্মার মেয়ে পান্না রানী শর্মা বলেন, ‘মাকে নিয়ে কত কষ্টে আছি, কেউ না এলে বুঝবেন না। দেশকে শত্রুমুক্ত করতে বিনা শর্তে অস্ত্র হাতে তুলে নিয়েছিল আমার বাবা-মা। অথচ আজ আমার মা ও বাবার রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেতে কত শর্ত মানতে হবে। এর চেয়ে দুঃখের কী আছে! আমি আশা করব, একদিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঠিকই আমাদের বাবা-মাকে স্বীকৃতি দিবেন। কারণ পৃথিবীতে অনেক সত্য আছে, যেগুলোর জন্য প্রমাণ লাগে না। আমার বাবা-মাও তেমন।’

কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলার নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শুভাশিস ঘোষ বলেন, ‘আমি কিশোরী রানী শর্মাকে চিনি। তার জীবনে ঘটে যাওয়া ঘটনা শুনেছি। তিনি ও তার স্বামী মুক্তিযুদ্ধ করেছেন। তবে যথাযথ ডকুমেন্ট সংরক্ষণ করতে পারেননি বলে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পাননি। আমি আশা করব, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ যেন তার এই ত্যাগের বিষয়টি মূল্যায়ন করেন। তিনি যেন তার প্রাপ্য পান। কারণ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দিয়েছেন। সেখানে স্বাধীনতার অর্ধশত বছর পরে এসে যদি একজন প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা তার স্বীকৃতি না পান, সেটা হবে দুর্ভাগ্যজনক।’

আরও পড়ুন:
ডিসেম্বরকে ‘মুক্তিযোদ্ধা মাস’ চান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
একাত্তরে শহীদ আইনজীবীদের তালিকা চায় সুপ্রিম কোর্ট
রাজাপুর পাকহানাদার মুক্ত দিবস
‘৯০ ভাগ সমবায় সমিতি শুধু কাগজে-কলমে’
বঞ্চিত মুক্তিযোদ্ধাদের স্বীকৃতি দাবি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police in 15 day special operation

১৫ দিনের বিশেষ অভিযানে পুলিশ

১৫ দিনের বিশেষ অভিযানে পুলিশ
আবাসিক হোটেল, মেস, হোস্টেল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি সেন্টারসহ অপারাধীদের লুকিয়ে থাকার সম্ভাব্য স্থানগুলোতে কার্যকর অভিযান পরিচালনা করতে হবে বলে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

পলাতক জঙ্গিসহ অপরাধী গ্রেপ্তারে দেশব্যাপী বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে। পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হওয়া অভিযান চলবে ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

পুলিশ সদর দপ্তর থেকে ২৯ নভেম্বর চিঠি দিয়ে বিভিন্ন ইউনিটকে ১ ডিসেম্বর থেকে এ অভিযান পরিচালনার নির্দেশ দেয়া হয়।

পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত ডিআইজি মো. হাসানুজ্জামানের সই করা চিঠিতে বলা হয়, মহান বিজয় দিবস, বড়দিন ও থার্টিফাস্ট নাইট উদযাপন নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে সারাদেশে বিশেষ অভিযান চালানোর নির্দেশনা দেয়া হলো।

দেশের সব পুলিশ ইউনিটের প্রধান ও সব জেলার পুলিশ সুপারকে এ চিঠি দেয়া হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়, ২০ নভেম্বর ঢাকা সিএমএম আদালত এলাকায় পুলিশ হেফাজত থেকে দণ্ডপ্রাপ্ত ২ জঙ্গি ছিনিয়ে নেয়ার প্রেক্ষাপট বিবেচনা, মহান বিজয় দিবস, বড়দিন এবং থার্টিফাস্ট নাইট উদযাপন নিরাপদ ও নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে চলমান অভিযানের পাশাপাশি ১-১৫ ডিসেম্বর বিশেষ অভিযান পরিচালনার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আবাসিক হোটেল, মেস, হোস্টেল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, কমিউনিটি সেন্টারসহ অপারাধীদের লুকিয়ে থাকার সম্ভাব্য স্থানগুলোতে কার্যকর অভিযান পরিচালনা করতে হবে বলে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

বিশেষ এ অভিযানে জঙ্গি, সন্ত্রাসী, মাদকসেবী ও কারবারি, অবৈধ অস্ত্রধারী, ওয়ারেন্টভূক্ত আসামি গ্রেপ্তারসহ মাদক ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার হবে বলে আশা করছেন কর্মকর্তারা।

বিশেষ অভিযানে গ্রেপ্তার ও মামলার বিস্তারিত তথ্য নির্ধারিত ছকের মাধ্যমে একীভূত করে প্রতিদিনের তথ্য পরের দিন সকাল ১০টার মধ্যে ফ্যাক্সযোগে এবং ই-মেইলে পুলিশ সদর দপ্তরে পাঠাতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বিভিন্ন ইউনিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের।

আরও পড়ুন:
বিএনপির মিছিল থেকে ককটেল হামলার অভিযোগ
মেয়ের বান্ধবীকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রামপুলিশ আটক
ছাত্রদল নেতা নয়ন হত্যা: পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা নেয়নি আদালত
বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে মামলা, ৬৬ নেতা-কর্মী আসামি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Dependence on technology is reducing book reading Chief Justice

প্রযুক্তিনির্ভরতায় বই পড়া কমছে: প্রধান বিচারপতি

প্রযুক্তিনির্ভরতায় বই পড়া কমছে: প্রধান বিচারপতি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। ছবি: নিউজবাংলা
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘অতিরিক্ত প্রযুক্তিনির্ভরতা আমাদের বই পড়ার অভ্যাসকে অবিরত বিঘ্ন ঘটাচ্ছে। বর্তমানে বইয়ের থেকে বেশি স্মার্টফোনের ছোঁয়া। বর্তমান প্রজন্ম বই থেকে অনেকটা দূরে।’

মানুষের জীবনে অতিরিক্ত প্রযুক্তিনির্ভরতায় বই পড়া কমছে বলে মনে করেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির অডিটরিয়ামে অ্যাডভোকেট আবুল খায়েরের লেখা তিনটি বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘অতিরিক্ত প্রযুক্তিনির্ভরতা আমাদের বই পড়ার অভ্যাসকে অবিরত বিঘ্ন ঘটাচ্ছে। বর্তমানে বইয়ের থেকে বেশি স্মার্টফোনের ছোঁয়া। বর্তমান প্রজন্ম বই থেকে অনেকটা দূরে।

‘যারা আগামী দিনে আমাদের দেশ গড়ার কারিগর, তাদের বইয়ের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেয়া জরুরি। নতুন প্রজন্মকে সৎ, উদার, সহনশীল খাঁটি মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্ব আমাদের সকলের। একটি বই জাতিকে পরিবর্তন করে দিতে পারে। মানুষের মধ্যে সৃজনশীল ও মননশীল গুণাবলি তৈরির জন্য বইয়ের কোনো তুলনা নেই।’

বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য আগরতলা মামলার প্রেক্ষাপট অপরিসীম জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আগরতলা মামলা একটি ঐতিহাসিক ঘটনা, এটা নিয়ে একটি মনুমেন্ট তৈরি করা যেতে পারে। স্বাধীনতার সূতিকাগার বলা যায় ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা আন্দোলন, আগরতলা মামলা এবং উনসত্তরের অভ্যুত্থানকে।’

৭০ বছর বয়সেও বই লেখার প্রবণতা নিয়ে অ্যাডভোকেট আবুল খায়েরেকে ধন্যবাদ জানিয়ে প্রশংসা করেন প্রধান বিচারপতি।
অনুষ্ঠানে কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন ছাড়াও সিনিয়র আইনজীবী ইউসুফ হোসেন হুমায়ূন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকিরসহ আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।


অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক আব্দুন নূর দুলাল।

আরও পড়ুন:
দুর্নীতি রাষ্ট্রের ভিত্তি দুর্বল করে: প্রধান বিচারপতি
ধর্মের জন্য সবচেয়ে বিপজ্জনক হলো অজ্ঞতা: প্রধান বিচারপতি
ক্ষমতার ভারসাম্য রক্ষায় চাই শক্তিশালী বিচার বিভাগ: প্রধান বিচারপতি
সুপ্রিম কোর্টে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারে নতুন দিগন্ত

মন্তব্য

p
উপরে