× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Decreased detection in deathless days
hear-news
player
google_news print-icon

মৃত্যুহীন দিনে কমেছে শনাক্ত

মৃত্যুহীন-দিনে-কমেছে-শনাক্ত
ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। এর আগের দিন করোনায় মৃত্যু হয় পাঁচজনের

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে শনাক্ত কমেছে। এ সময়ে ২৯৯ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন করোনা শনাক্ত হয়েছিল ৪৯১ জনের দেহে।

এই সময়ে করোনা শনাক্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি। এর আগের দিন করোনায় মৃত্যু হয় পাঁচজনের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর শনিবার জানায়, এদিন সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২ হাজার ১৯৯টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৯৯ জনের দেহে। শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ।

টানা ১৪ দিন ধরে করোনা শনাক্তের হার ৫ শতাংশের ওপরে থাকায় দেশে করোনার পঞ্চম ঢেউ নিশ্চিত হয়েছে। কারণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, শনাক্তের হার টানা দুই সপ্তাহ ৫ শতাংশের নিচে থাকলে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলা যায়। দেশে করোনার চতুর্থ ঢেউ শুরুর পর ১১ আগস্ট প্রথমবারের মতো শনাক্ত হার ৫ শতাংশের নিচে নামে। ওইদিন ৪ হাজার ৮০৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্তের হার ছিল ৪ দশমিক ৪৫ শতাংশ। তার পর থেকে এই হার ওঠানামা করলেও তা ৫ শতাংশ ছাড়ায়নি।

কিন্তু ৫ সেপ্টেম্বর থেকে বদলে যায় দৃশ্যপট। বাড়তে থাকে করোনা সংক্রমণ। ১৪ দিন ধরে তা ঊর্ধ্বমুখী। মাঝে এক-দুদিন শনাক্তের হার কমলেও তা কখনও ৫-এর নিচে নামেনি।

গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্তদের ১৯৭ জনই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৯ হাজার ৩১৪ জন।

এই সময়ে করোনায় কারও মৃত্যু না হওয়ায় মোট মৃত্যু ২৯ হাজার ৩৮০ জনে রয়ে গেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৬৯০ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৯ হাজার ৩৪৪ জন।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ চলছে।

আরও পড়ুন:
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে বাংলাদেশ
করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি কমিটির ৫ দফা সুপারিশ
মৃত্যুহীন দিনে করোনা শনাক্ত ১৪১
করোনা: শনাক্তের হার ছাড়াল ১০ শতাংশ
মৃত্যুশূন্য দিনে শনাক্তের হার ৯ ছাড়াল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Travelers returning from abroad in China will not need quarantine

চীনে প্রবেশে লাগবে না কোয়ারেন্টিন

চীনে প্রবেশে লাগবে না কোয়ারেন্টিন কোয়ারেন্টিনের বিধান তুলে নেয়ায় বেইজিং বিমানবন্দরে উচ্ছ্বসিত যাত্রীরা। ছবি: সংগৃহীত
২০২০ সালের মার্চ থেকে চীনে পৌঁছানোর পর দেশটির সরকারের অধীনে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হতো বিদেশিদের। প্রথম দিকে এ কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ ছিল তিন সপ্তাহ। গত গ্রীষ্মে সে সময় কমিয়ে এক সপ্তাহে আনা হয়। পরে নভেম্বরে তা আরও কমিয়ে পাঁচ দিন করা হয়।

করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারি শুরুর প্রায় তিন বছর পর চীনে প্রবেশের পর কোয়ারেন্টিনের বিধিনিষেধ তুলে নিল দেশটির সরকার।

স্থানীয় সময় রোববার থেকে দেশটিতে ঢোকার পর আর কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

বিক্ষোভের মুখে গত মাসে কঠোর করোনা বিধি থেকে সরে আসে চীন। এর পর থেকেই দেশটিতে ভাইরাসটির সংক্রমণ বড় পরিসরে বাড়তে থাকে।

রয়টার্স জানায়, ২০২০ সালের মার্চ থেকে চীনে পৌঁছানোর পর দেশটির সরকারের অধীনে কোয়ারেন্টিনে থাকতে হতো বিদেশিদের। প্রথম দিকে এ কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ ছিল তিন সপ্তাহ। গত গ্রীষ্মে সে সময় কমিয়ে এক সপ্তাহে আনা হয়। পরে নভেম্বরে তা আরও কমিয়ে পাঁচ দিন করা হয়।

করোনার কঠোর বিধিনিষেধ তুলে নেয়ার পরই চীনের জনগণ জনপ্রিয় ভ্রমণ ওয়েবসাইটগুলোতে বিদেশে ভ্রমণ নিয়ে অনুসন্ধান শুরু করেন, তবে এক ডজনেরও বেশি দেশ চীন থেকে আসা যাত্রীদের ওপর বাধ্যতামূলক কোভিড পরীক্ষাসহ নানা বিধিনিষেধ আরোপ করে। এ পদক্ষেপকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে আখ্যা দিয়েছে বেইজিং।

চান্দ্র নববর্ষের ছুটিতে চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করছেন বিশ্লেষকরা।

আরও পড়ুন:
তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে চীনা নাগ‌রি‌কের মৃত্যু
চীনে করোনার দৈনিক হিসাব প্রকাশ বন্ধ
করোনা সংক্রমণ বাড়লেও চীনের সঙ্গে চালু থাকছে ফ্লাইট
সামাজিক মাধ্যমে ছড়ানো তথ্যে চীনে ‘করোনা আক্রান্ত ২৫ কোটি’
করোনা: চীনের সমাধিতে দুই ঘণ্টায় ৪০ মরদেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
New strain of corona BF Dotseven in Bangladesh

করোনার নতুন উপধরন বিএফ ডটসেভেন বাংলাদেশে

করোনার নতুন উপধরন বিএফ ডটসেভেন বাংলাদেশে
আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘একজন চীনা নাগরিকের শরীরে ওমিক্রনের নতুন উপধরন বিএফ ডটসেভেন শনাক্ত হয়েছে। তবে তিনি ভালো আছেন।’

চীন থেকে বাংলাদেশে আসা দেশটির এক নাগরিকের শরীরে করোনাভাইরাসের নতুন উপধরন বিএফ ডটসেভেন শনাক্ত হয়েছে।

রোববার দুপুরে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, ওই চারজনের করোনা পরীক্ষার পর একজনের শরীরে উপধরনটি শনাক্ত হয়েছে।

বিএফ ডটসেভেন করোনাভাইরাসের ওমিক্রন ধরনের নতুন উপধরন।

আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘একজন চীনা নাগরিকের শরীরে ওমিক্রনের নতুন উপধরন বিএফ ডটসেভেন শনাক্ত হয়েছে। তবে তিনি ভালো আছেন।’

এর আগে গত ২৬ ডিসেম্বর চীন থেকে আসা দেশটির চার নাগরিকের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়। চীন থেকে তারা কোভিড নেগেটিভ সনদ সঙ্গে এনেছিলেন। তবে বাংলাদেশে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষায় তাদের শরীরে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়।

সম্প্রতি চীনে আবার করোনার সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। এ নিয়ে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগের মধ্যে রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আবার চীনসহ কয়েকটি দেশ থেকে আসা যাত্রীদের করোনা পরীক্ষা শুরু হয়েছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় এক দিনে ৪ মৃত্যু
মৃত্যুশূন্য দিনে শনাক্ত ১৯৬
একদিনে করোনা শনাক্ত ১৮৫, মৃত্যু ১
করোনায় আরও ৬ মৃত্যু, শনাক্ত হার ৬.৯৭
একদিনে করোনা শনাক্ত ৪৫৬, মৃত্যু ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The publication of the daily account of Corona is stopped in China

চীনে করোনার দৈনিক হিসাব প্রকাশ বন্ধ

চীনে করোনার দৈনিক হিসাব প্রকাশ বন্ধ চীনের হাসপাতালগুলোতে করোনা আক্রান্ত রোগী বাড়ছে। ছবি: এপি
চীনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশন গত তিন বছর ধরেই প্রতিদিন করোনা আক্রান্তের হিসাব প্রকাশ করে আসছিল, তবে রোববার থেকে এ তথ্য আর প্রকাশ হবে না বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

বিক্ষোভের মুখে বিধিনিষেধ শিথিলের পর চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ হু হু করে বাড়ছে বলে খবর প্রকাশ করছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম। এর মধ্যেই দেশটিতে দৈনিক করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রকাশ বন্ধ করা হলো।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশন (এনএইচএস) গত তিন বছর ধরেই প্রতিদিন করোনা আক্রান্তের হিসাব প্রকাশ করে আসছিল, তবে রোববার থেকে এ তথ্য আর প্রকাশ হবে না বলে জানিয়েছে সংস্থাটি।

বিবৃতিতে এনএইচএসের পক্ষ থেকে বলা হয়, রেফারেন্স ও গবেষণার জন্য করোনাসংশ্লিষ্ট তথ্য চীনের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন সেন্টার প্রকাশ করবে।

কী কারণে করোনার দৈনিক হিসাব প্রকাশ বন্ধ করা হলো, তা নিয়ে এনএইচএসের পক্ষ থেকে কিছু জানানো হয়নি।

ব্লুমবার্গ ও ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের বরাত দিয়ে সিএনএনের প্রতিবেদনে বলা হয়, চলতি মাসের প্রথম ২০ দিনে চীনে ২৫ কোটি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন দেশটির শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

ওই প্রতিবেদন সঠিক হলে চীনের ১৪০ কোটি জনগণের প্রায় ১৮ শতাংশই চলতি মাসে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে, তবে সিএনএন এই দাবির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

আরও পড়ুন:
করোনা: চীনা ভ্যারিয়েন্টে সতর্ক ভারত
অরুণাচল সীমান্তে ভারত- চীন সেনাদের সংঘর্ষ, কয়েকজন আহত
রাষ্ট্রপতির সঙ্গে জাপান-চীনের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
কোট পরলেই হ্যারি পটারের মতো অদৃশ্য
করোনায় ১ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Corona 40 dead bodies in two hours in Chinese tombs

করোনা: চীনের সমাধিতে দুই ঘণ্টায় ৪০ মরদেহ

করোনা: চীনের সমাধিতে দুই ঘণ্টায় ৪০ মরদেহ চীনের হাসপাতালগুলোতে বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী। ছবি: এএফপি
চীন সরকারের নতুন নিয়ম অনুযায়ী, করোনায় মৃত্যুর তালিকায় তাদেরই অন্তর্ভুক্ত করা হবে, যারা করোনা পজিটিভ ছিলেন এবং শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন।

চীনের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় চংকিংয়ের পিপল হাসপাতাল। চীনে করোনাভাইরাসের ব্যাপক সংক্রমণের খবরের মধ্যে শুক্রবার স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানটিতে যান এএফপির এক প্রতিবেদক। সেখানে রোগীর চাপে বারান্দাকে বানানো হয়েছে অস্থায়ী করোনা ওয়ার্ড।

হাসপাতালটিতে প্রতিরক্ষামূলক গিয়ারে থাকা এক কর্মী ‘মৃত, মৃত’ বলে চিল্লাতে চিল্লাতে এক নার্সের হাতে ডেথ সার্টিফিকেট বুঝিয়ে দিচ্ছিলেন।

একটি কক্ষে প্রায় ৪০ জন বৃদ্ধ ও মধ্যবয়স্ক ব্যক্তি হাতে স্যালাইন লাগানো অবস্থায় ছিলেন, যাদের মধ্যে কেউ কেউ দিচ্ছিলেন কাশি।

হাসপাতালের এক নার্স এএফপিকে জানান, ওয়ার্ডের সবাই করোনা রোগী।

ওই কক্ষটির পাশেই নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটের (আইসিইউ) বিছানায় শুয়ে ছিলেন তিন রোগী।

হাসপাতালটির জরুরি বিভাগেও ৫০ জনের সারি দেখা যায়, যাদের মধ্যে অনেকে করোনা রোগী। সেখানে থাকা একজন জানান, তারা এক ঘণ্টার বেশি ধরে অপেক্ষা করছেন।

চংকিংয়ের আরেকটি হাসপাতালের জরুরি বিভাগেও একই চিত্র দেখা যায়। সেখানে ৩০ জন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিকে হাতে স্যালাইন লাগানো অবস্থায় দেখা গেছে। তাদের মধ্যে অনেকেই কৃত্রিম উপায়ে শ্বাস নিচ্ছিলেন, অনেকের হাতে পালস অক্সিমিটার লাগানো ছিল।

হাসপাতালটির এক পরিচ্ছন্নতাকর্মী ও এক নার্স এএফপিকে জানান, সরকার করোনার বিধিনিষেধ শিথিলের পর প্রতিদিন বেশ কয়েকজন মারা যাচ্ছেন।

মৃত ব্যক্তিরা সবাই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কি না, তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি হাসপাতালটির কর্মীরা।

এএফপির প্রতিবেদকের চোখে করোনাভাইরাসের যে চিত্র ধরা পড়েছে, তার সঙ্গে মিলছে না দেশটির সরকারের দেয়া মৃত্যুর হিসাব।

করোনাভাইরাসে মৃত্যুকে নতুন করে সংজ্ঞায়িত করেছে চীন। নতুন নিয়ম অনুযায়ী, করোনায় মৃত্যুর তালিকায় তাদেরই অন্তর্ভুক্ত করা হবে, যারা কোভিড পজিটিভ ছিলেন এবং শ্বাসকষ্টে মারা গেছেন।

‘বেশির ভাগের মৃত্যু করোনায়’

এএফপির টিম বৃহস্পতিবার একটি সমাধি পরিদর্শন করে, যেখানে দুই ঘণ্টায় ৪০টি মরদেহ নামানো হয়। মৃত ব্যক্তিদের স্বজনরা জানান, তাদের বেশির ভাগের মৃত্যু হয় করোনায়।

এক নারী জানান, তার বৃদ্ধ আত্মীয় ঠান্ডাজনিত উপসর্গে ভুগছিলেন। তার করোনা পরীক্ষার ফল নেগেটিভ আসে, কিন্তু অবস্থা খারাপ হওয়ার পর সময়মতো অ্যাম্বুলেন্স না পাওয়ায় মৃত্যু হয়।

২০ বছর বয়সী আরেক নারীর শঙ্কা, তার বাবাও করোনায় মারা গেছেন, যদিও পরীক্ষা করানো হয়নি।

আরও পড়ুন:
কোট পরলেই হ্যারি পটারের মতো অদৃশ্য
করোনায় ১ মৃত্যু, শনাক্ত ৩২
বিক্ষোভের মুখে কঠোর করোনাবিধি থেকে সরল চীন
সৌদি-যুক্তরাষ্ট্র দূরত্বের মধ্যে রিয়াদ যাচ্ছেন চীনের প্রেসিডেন্ট
রাশিয়া-ইউক্রেনের মতো বিপর্যয় এড়িয়ে চলা উচিত: চীনের রাষ্ট্রদূত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chinas hospitals apparently overflowing WHO

চীনের হাসপাতালগুলো দৃশ্যত ভরে যাচ্ছে: ডব্লিউএইচও

চীনের হাসপাতালগুলো দৃশ্যত ভরে যাচ্ছে: ডব্লিউএইচও চীনের বেইজিংয়ে একটি ক্লিনিকে পিপিই পরে জীবাণুমুক্ত করার কাজ করছেন একদল কর্মী। ছবি: এএফপি
ডব্লিউএইচওর স্বাস্থ্যগত জরুরি কর্মসূচির নির্বাহী পরিচালক মাইকেল রায়ান বলেন, চীনের কর্মকর্তারা করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ‘তুলনামূলক কম’ বললেও নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটগুলো (আইসিইউ) ব্যস্ত রয়েছে।

করোনাভাইরাসের নতুন ঢেউ নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে চীনের হাসপাতালগুলো দৃশ্যত রোগীতে ভরে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

সংস্থাটির স্বাস্থ্যগত জরুরি কর্মসূচির নির্বাহী পরিচালক মাইকেল রায়ান বলেন, চীনের কর্মকর্তারা করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ‘তুলনামূলক কম’ বললেও নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটগুলো (আইসিইউ) ব্যস্ত রয়েছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে জানানো হয়, চীন প্রকাশিত ডেটা অনুযায়ী, বুধবার করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। যদিও রোগটির প্রকৃত বিস্তার নিয়ে সংশয় রয়ে গেছে।

করোনা সংক্রমণ বাড়ায় সম্প্রতি বেইজিংসহ অনেক শহরের হাসপাতালগুলোতে রোগীর ভিড় বাড়তে থাকে।

করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে ২০২০ সাল থেকে জিরো কোভিড পলিসির অংশ হিসেবে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে চীন, তবে কড়াকড়ির বিরুদ্ধে কয়েকটি শহরে ব্যাপক বিক্ষোভের পর দুই সপ্তাহ আগে বিধিনিষেধ শিথিল করে বেইজিং।

কড়াকড়ি থেকে সরে আসার পর চীনে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, যাতে বিশেষভাবে ঝুঁকিতে থাকা বৃদ্ধদের মৃত্যুহার বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সংক্রমণ বাড়লেও চীনের সরকারি ডেটা অনুযায়ী, করোনায় সোমবার দুজন এবং মঙ্গলবার পাঁচজনের মৃত্যু হয়।

এমন পরিস্থিতিতে ডব্লিউএইচওর কর্মকর্তা মাইকেল রায়ান ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে বিশদ তথ্য দিতে চীনকে তাগিদ দেন।

তিনি বলেন, ‘চীনে আইসিইউগুলোতে তুলনামূলক কম রোগী থাকার খবর বেরিয়েছে, তবে অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে আইসিইউগুলো ভরে যাচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভের মুখে কঠোর করোনাবিধি থেকে সরল চীন
সৌদি-যুক্তরাষ্ট্র দূরত্বের মধ্যে রিয়াদ যাচ্ছেন চীনের প্রেসিডেন্ট
রাশিয়া-ইউক্রেনের মতো বিপর্যয় এড়িয়ে চলা উচিত: চীনের রাষ্ট্রদূত
ছয় মাস মহাকাশে কাটিয়ে চীনে নামলেন ৩ নভোচারী
ভারতের সঙ্গে যৌথ মহড়ায় চীনকে চুপ থাকার আহ্বান যুক্তরাষ্ট্রের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Corona detection is hovering around zero

করোনা শনাক্ত ঘুরছে শূন্যের কোঠায়

করোনা শনাক্ত ঘুরছে শূন্যের কোঠায় সারা দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ কমেছে। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ১৯৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাদের মধ্যে ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৬৮ শতাংশ। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ১২ জন ঢাকার বাসিন্দা।

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমে এসেছে। সারাদেশে ২৪ ঘন্টায় শনাক্ত হয়েছে ১৫ জন রোগী। এসময় করোনা শনাক্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, সারা দেশে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ১৯৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তাদের মধ্যে ১৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৬৮ শতাংশ। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ১২ জন ঢাকার বাসিন্দা।

দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ৩৬ হাজার ৬৩৭ জন। আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ৪৩৪ জনের।

গত ২৪ ঘন্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৫৬ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৮৬ হাজার ১০৭ জন।

২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ার পর মোট পাঁচটি ঢেউ মোকাবিলা করতে হয়েছে দেশকে। পঞ্চম ঢেউয়ে শনাক্ত ও মৃত্যু তুলনামূলক কম। বর্তমানে করোনা নিয়ন্ত্রণের পথে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

আরও পড়ুন:
করোনায় শনাক্ত ২৩
করোনা: শনাক্ত কমে ২০
করোনা শনাক্ত শূন্যের কোঠায়
করোনা শনাক্ত ঘুরছে শূন্যের কোঠায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Corona detection reduced to 16

করোনা: শনাক্ত কমে ১৬

করোনা: শনাক্ত কমে ১৬ কমছে করোনাভাইরাস সংক্রমণ। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৩৯৮ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ সময় ১৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ১০ জনই ঢাকার বাসিন্দা। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৬৭ শতাংশ।

সারা দেশে ২৪ ঘণ্টায় ১৬ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে করোনা শনাক্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, রোববার সকালের পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৩৯৮ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ সময় ১৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন শনাক্তদের মধ্যে ১০ জনই ঢাকার বাসিন্দা। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৬৭ শতাংশ।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ৩৬ হাজার ৫২৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৭৯ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৮৫ হাজার ৫৭৮ জন।

করোনাভাইরাস সংক্রমণে সারা দেশে এ পর্যন্ত ২৯ হাজার ৪৩১ জন মারা গেছেন। বর্তমানে শনাক্ত কমে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের পথে বলে মনে করছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

আরও পড়ুন:
করোনায় শনাক্ত ২৩
করোনা: শনাক্ত কমে ২০
করোনা শনাক্ত শূন্যের কোঠায়

মন্তব্য

p
উপরে