× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
In a separate incident three people are in the clutches of Ajna Party
hear-news
player
google_news print-icon

আলাদা ঘটনায় তিনজন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে

আলাদা-ঘটনায়-তিনজন-অজ্ঞান-পার্টির-খপ্পরে
ঢামেক পুলিশ ক‍্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে গুলিস্তান আজিমপুর এবং তুরাগ থেকে তিন ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় আনার পর তাদের পাকস্থলি পরিষ্কার করে তাদের মেডিসিন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট থানায় জানানো হয়েছে।

রাজধানীর আলাদা ঘটনায় তিনজন অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েছেন। ভুক্তভোগীরা সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ সর্বোচ্চ লুট করে নিয়ে যায় অজ্ঞান পার্টির প্রতারক সদস্যরা। আহতদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আহতরা হলেন গার্মেন্ট ব্যবসায়ী সাহেব আলী, রড ও স্টিলের দোকানের ম্যানেজার আবুল কাশেম এবং অটোরিকশার চালক কবির হোসেন।

শনিবার মধ্যরাত থেকে রোববার রাত ৮টার মধ্যে এসব ঘটনা ঘটে।

কবির হোসেন শনিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে তুরাগ সিএনজি স্ট্যান্ডে যাত্রীর অপেক্ষায় ছিলেন। তখন অজ্ঞান পার্টির প্রতারক চক্রের সদস্যরা হালুয়া খাইয়ে তার অটোরিকশা নিয়ে সটকে পড়েন। পরে পথচারী সোলায়মানসহ চারজন তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করেন।

রোববার দুপুর দেড়টার দিকে আজিমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে সাহেব আলী নামের ওই গার্মেন্ট ব্যবসায়ীকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়। তার কাছে থাকা এক লাখ ২০ হাজার টাকা নিয়ে কেটে পড়ে প্রতারক চক্রের সদস্যরা।

গুলিস্তান থেকে আবুল কাশেম নামের এক ব্যক্তিকে রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে অচেতন অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়।

অসুস্থ আবুল কাশেমকে নিয়ে যাওয়া দোকানের মালিক মোহাম্মদ আলম বলেন, ‘আমার পোস্তগোলা এলাকায় একটি রড এবং স্টিলের দোকান আছে। সেখান থেকে সকালে আমার ম্যানেজার আবুল কাশেমকে পাওনা টাকা এবং ব্যক্তিগত কাজে মেঘনা তার ফ্যাক্টরিতে পাঠানো হয়। সেখান থেকে বিকেলে দোয়েল চাপা বাসে ঢাকা ফেরার পথে মেঘনা এবং যাত্রাবাড়ীর মাঝামাঝি স্থানে অজ্ঞান পার্টির প্রতারক চক্রের খপ্পরে পড়ে।’

ঢামেক পুলিশ ক‍্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে গুলিস্তান আজিমপুর এবং তুরাগ থেকে তিন ব্যক্তি অসুস্থ অবস্থায় আনার পর তাদের পাকস্থলি পরিষ্কার করে তাদের মেডিসিন ওয়ার্ডে রাখা হয়েছে। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট থানায় জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে ১২ লঞ্চযাত্রী
গরু ব্যবসায়ীদের অজ্ঞান করেন তারা
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থীর মৃত্যু
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে রাজমিস্ত্রি
অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে ব্যবসায়ীর মৃত্যু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The young mans wrist was broken by the train

যুবকের কবজি বিচ্ছিন্ন ট্রেনের ধাক্কায়

যুবকের কবজি বিচ্ছিন্ন ট্রেনের ধাক্কায় প্রতীকী ছবি
‘কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় রেললাইন পার হতে গিয়ে সজিব দুর্ঘটনায় পড়েন। ট্রেনের ধাক্কায় তার ডান হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।’

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ট্রেনের ধাক্কায় মোহাম্মদ সজিব নামে এক যুবকের হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

বুধবার বেলা দুইটার দিকে কারওয়ান বাজার রেলগেটের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহত অবস্থায় সজিবকে নেয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে।

তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা যুবক কামাল হোসেন বলেন, ‘কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় রেললাইন পার হতে গিয়ে সজিব দুর্ঘটনায় পড়েন। ট্রেনের ধাক্কায় মাথাসহ শরীরের অন্য জায়গায় জখমের পাশপাশি তার ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দ্রুত তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়।’

তেজগাঁও থানার একজন উপ-পরিদর্শক (এসআই) সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে সজিবের খোঁজখবর নেন। হাসপাতালের ১০১ নম্বর অর্থোপেডিক ওয়ার্ডে ভর্তি রেখে সজিবের চিকিৎসা চলছে। ২২ বছর বয়সী এ যুবকের শারীরিক অবস্থা অনেকটা শঙ্কামুক্ত বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘ট্রেনের ধাক্কায় কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া যুবককে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। তার বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।’

আরও পড়ুন:
ট্রেনের ধাক্কায় এক যুবক নিহত
মহাখালীতে ট্রেনের ধাক্কায় যুবক নিহত
ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়েমুচড়ে গেল মাইক্রোবাস, বেঁচে যায় ১৬ শিশুশিক্ষার্থী
ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু
হেডফোন কানে দিয়ে রেললাইন পার হতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hospitals to segregate medical waste Tapas

হাসপাতালগুলোকেই চিকিৎসা বর্জ্য পৃথক করতে হবে: তাপস

হাসপাতালগুলোকেই চিকিৎসা বর্জ্য পৃথক করতে হবে: তাপস বুধবার খিলগাঁও তালতলা কবরস্থান ও মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে মোনাজাত করেন মেয়র ফজলে নূর তাপস ও সাংসদ সাবের হোসেন চৌধুরীসহ অন্যরা। ছবি: নিউজবাংলা
সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘চিকিৎসা বর্জ্য উৎসেই পৃথক করার কথা পরিবেশ আইনে সুস্পষ্টভাবে বলা আছে। অতীতে এটা নিয়ে আমরা কেউ ভাবিনি। এখন আমরা প্রতিটি বর্জ্য ও বর্জ্যের উৎসস্থল আমরা চিহ্নিত করছি। উৎসে চিকিৎসা বর্জ্য পৃথক না করা হলে সিটি করপোরেশনের খুব একটা বেশি কিছু করার নেই।’

হাসপাতাল, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টারসহ চিকিৎসা-সংশ্লিষ্ট সব প্রতিষ্ঠানে সৃষ্ট চিকিৎসা বর্জ্য সাধারণ বর্জ্যের সঙ্গে মিশিয়ে হস্তান্তর করা হচ্ছে। এতে চিকিৎসা বর্জ্য বিশেষ প্রক্রিয়ায় ধ্বংস করার কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এসব তথ্য জানিয়ে বলেছেন, এখন থেকে চিকিৎসা বর্জ্য আলাদা করে সিটি করপোরেশন নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানের কাছে হস্তান্তর করতে হবে।

বুধবার খিলগাঁও তালতলা কবরস্থান ও মসজিদের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে গণমাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে মেয়র এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘চিকিৎসা বর্জ্য ধ্বংসে প্রতিবন্ধকতা হচ্ছে হাসপাতালগুলো নিয়ম মেনে সাধারণ বর্জ্য থেকে চিকিৎসা বর্জ্য পৃথকীকরণ করছে না। এটা স্ব স্ব হাসপাতাল ও ক্লিনিককে নিজ দায়িত্বে পৃথক করতে হবে।

‘চিকিৎসা বর্জ্য সংগ্রহে অঞ্চলভিত্তিক প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। যেসব প্রতিষ্ঠানকে চিকিৎসা বর্জ্য সংগ্রহের জন্য আমরা নিবন্ধন দেবো, তাদের কাছে তা হস্তান্তর করতে হবে। তারা সরাসরি মাতুয়াইল ভাগাড়ে ইনসিনারেশন প্লান্টে নিয়ে এলে আমরা পরিপূর্ণভাবেই চিকিৎসা বর্জ্য থেকে ঢাকাবাসীকে মুক্ত করতে পারব।’

পরিকল্পিত নগরায়নের মাধ্যমে ঢাকাবাসীর কল্যাণে সব উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হচ্ছে উল্লেখ করে মেয়র তাপস বলেন, ‘আমরা এখানে একটি কবরস্থান ও মসজিদের উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করলাম। এই কবরস্থানের জমি দীর্ঘদিন ধরে দখল অবস্থায় ছিল। আমরা পুরোটা দখলমুক্ত করে পরিপূর্ণ জায়গা নিয়ে সুন্দর কবরস্থান করছি।’

চিকিৎসা বর্জ্য উৎসেই পৃথক করার বিধান আছে উল্লেখ করে ঢাকা-৯ আসনের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘পরিবেশ আইনেই বিধানটি সুস্পষ্টভাবে বলা আছে। অতীতে এটা নিয়ে আমরা কেউ ভাবিনি। এখন আমরা প্রতিটি বর্জ্য ও বর্জ্যের উৎসস্থল আমরা চিহ্নিত করছি। উৎসে চিকিৎসা বর্জ্য পৃথক না করা হলে সিটি করপোরেশনের খুব একটা বেশি কিছু করার নেই।

‘মুগদা হাসপাতালে আমরা একটা প্রটোকল চালু করেছি। তারা এটা কিভাবে ডিসপোজাল করবে সেজন্য সেখানে আমাদের একটা কমিটিও আছে। ঢাকা শহর ছাড়াও বাংলাদেশের আরও বিভাগে চিকিৎসালয় আছে। সেখানেও নানা ধরনের চিকিৎসা বর্জ্য তৈরি হয়। সুতরাং এটা আমাদের একটি জাতীয় কনসার্ন।’

কবরস্থান ও মসজিদের উন্নয়ন কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে মেয়র তাপস কবরস্থান প্রাঙ্গণে একটি কৃষ্ণচূড়া ও সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী একটি রাধাচূড়া গাছের চারা রোপণ করেন।

এর আগে মেয়র শেখ তাপস টিকাটুলি জামে মসজিদ পুনঃনির্মাণ, বাংলাদেশ মাঠ ভবন ও ধানমন্ডি নগর সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্রের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন এবং এলিফ্যান্ট রোডে নবনির্মিত গণশৌচাগার উদ্বোধন করেন।

এসব অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী, ঢাকা-৬ আসনের সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সচিব আকরামুজ্জামান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফীসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সব ওয়ার্ডে হবে ব্যায়ামাগার: মেয়র তাপস
মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরের চেয়ে বাংলাদেশের উন্নতি দ্রুত: তাপস
মেয়র তাপসকে নিয়ে গুজব ছড়ানোর মামলার প্রতিবেদন পেছাল
ঢাকা এখন আর বর্জ্যের শহর নয়: মেয়র তাপস
মেয়র তাপসের নামে মামলা: ফের পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death sentence for the accused in the rape and murder of a three and a half year old child

সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড

সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড প্রতীকী ছবি
রায়ে বিচারক বলেন, শিশুরা যদি তাদের আশপাশের প্রতিবেশীদের কাছে নিরাপদ না থাকে তা সমাজের জন্য অশনিসংকেত। আসামি একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে নিজের পাশবিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে ভিকটিমের জীবনে কালিমা লেপন করেছে এবং তার জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে।

রাজধানীর বাড্ডায় সাড়ে তিন বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে আসামি শিপনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক সাবেরা সুলতানা খানম বুধবার আসামির উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

আসামিকে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

রায়ে বিচারক বলেন, শিশুরা যদি তাদের আশপাশের প্রতিবেশীদের কাছে নিরাপদ না থাকে তা সমাজের জন্য অশনিসংকেত। আসামি একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে নিজের পাশবিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে ভিকটিমের জীবনে কালিমা লেপন করেছে এবং তার জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে। এই অপরাধের জন্য তার সর্বোচ্চ শাস্তি প্রাপ্য।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির উপপরিদর্শক রাশেদুল আলম ২০১৯ সালের ২৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৭ সালের ৩০ জুলাই আসামি শিপন নিজের বাসায় আসেন। ভুক্তভোগী শিশুকে বাসার সামনে দেখে তিনি শিশুটিকে ভাত খাওয়ান। এরপর ধর্ষণ করেন। শিশুটি চিৎকার করলে তার মুখ ও গলা চেপে ধরে রাখেন। এতে সে নিস্তেজ হয়ে পড়লে আসামি তাকে বাথরুমে ফেলে রেখে চলে যান।

ঘটনার পরদিন ৩১ জুলাই শিশুটির বাবা মেহেদী হাসান বাড্ডা থানায় মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ
আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত
জমি লিখে না দেয়ায় স্বামীকে হত্যার অভিযোগ
যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
স্বপন হত্যা মামলায় ব্যবসায়ীর মৃত্যুদণ্ড, বান্ধবীর যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP will make a mistake if it causes chaos in the name of assembly Home Minister

সমাবেশের নামে বিশৃঙ্খলা করলে ভুল করবে বিএনপি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

সমাবেশের নামে বিশৃঙ্খলা করলে ভুল করবে বিএনপি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। ফাইল ছবি
মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সব সময় বলে আসছি আপনাদের (বিএনপি) পার্টির যেকোনো কার্যক্রম করতে চান অবশ্যই করবেন। এটা রাজনৈতিক অধিকার। কিন্তু আপনারা কোনোক্রমেই বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি করতে পারবেন না এবং তার চেষ্টাও করবেন না। আমি একটি কথা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বিএনপি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করলে ভুল করবে।’

আসন্ন ১০ ডিসেম্বর সমাবেশের নামে কোনো বিশৃঙ্খলা করলে বিএনপি ভুল করবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর রাজারবাগে ‘নারী পুলিশের গৌরবময় যাত্রা ও অর্জন ১৯৭৪-২০২২’ প্রতিপাদ্যে বাংলাদেশ পুলিশ উইমেন নেটওয়ার্কের বার্ষিক প্রশিক্ষণ সম্মেলন-২০২২ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘সুন্দর পরিবেশের জন্যই তাদের সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি দেয়া হয়েছে। বিএনপি প্রথমে বলেছিল সমাবেশে অনেক লোকের সমাগম করবে। তারা দুটি জায়গা চেয়েছিল। একটি সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, আরেকটি মানিক মিয়া অ্যাভিনিউ। মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে জাতীয় সংসদ ভবন রয়েছে। সেখানে কাউকে সমাবেশ করতে দেওয়া হয় না। বিএনপির দাবির প্ররিপ্রেক্ষিতেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান দেয়া হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সব সময় বলে আসছি আপনাদের (বিএনপি) পার্টির যেকোনো কার্যক্রম করতে চান অবশ্যই করবেন। এটা রাজনৈতিক অধিকার। কিন্তু আপনারা কোনোক্রমেই বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি তৈরি করতে পারবেন না এবং তার চেষ্টাও করবেন না। আমি একটি কথা স্পষ্ট করে বলতে চাই, বিএনপি অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করলে ভুল করবে।’

১০ ডিসেম্বর খালেদা জিয়া সমাবেশে যোগদান করলে, তার জামিন বাতিল হবে কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে শর্ত সাপেক্ষে আদালত জামিন দিয়েছে। তিনি যদি সমাবেশে যান, সে বিষয়ে আদালত ব্যবস্থা নেবে।’

আরও পড়ুন:
১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশে বিশৃঙ্খলা হলেই ব্যবস্থা: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
২৫ লাখ লোক ধরে এমন জায়গা ঢাকায় নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
দিল্লিতে বাংলাদেশ ও ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সৌজন্য সাক্ষাৎ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Permission for BNP rally in Rajshahi on 8 conditions including no procession

মিছিল না করাসহ ৮ শর্তে রাজশাহীতে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি

মিছিল না করাসহ ৮ শর্তে রাজশাহীতে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি রাজশাহীতে বিএনপির সমাবেশস্থলে পুলিশ সদস্যরা। ছবি: নিউজবাংলা
আরএমপি কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিকের পক্ষে বিশেষ পুলিশ সুপার মুহম্মদ আবদুর রকিব স্বাক্ষরিত চিঠিতে বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দেয়ার বিষয়টি জানানো হয়।

সমাবেশস্থলে আসা-যাওয়ার পথে মিছিল না করাসহ আটটি শর্তে আগামী ৩ ডিসেম্বর বিএনপিকে রাজশাহীর বিভাগীয় সমাবেশ করার অনুমতি দিয়েছে পুলিশ।

বুধবার রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরএমপি) কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিকের পক্ষে বিশেষ পুলিশ সুপার (সিটিএসবি) মুহম্মদ আবদুর রকিব স্বাক্ষরিত চিঠিতে অনুমতির বিষয়টি জানানো হয়।

বিএনপি নেতারা বলছেন, তারা অনুমতির চিঠি হাতে পেয়েছেন, তবে যেসব শর্ত দেয়া হয়েছে, সেগুলো মানলে সমাবেশ করা যাবে না।

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনুর কাছে চিঠি দিয়ে সমাবেশের অনুমতি দিয়েছে পুলিশ।

আট শর্ত

১. সমাবেশস্থল রাজশাহীর মাদ্রাসা ময়দান চত্বরের মধ্যে সমাবেশের যাবতীয় কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। সমাবেশস্থলের আশপাশসহ রাস্তায় কোনো অবস্থাতেই সমবেত হওয়া এবং যান ও জনচলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না। নিরাপত্তার জন্য সমাবেশে আগতদের চেকিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে এবং নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় পর্যাপ্ত স্বেচ্ছাসেবক (দৃশ্যমান আইডি কার্ডসহ) নিয়োগ করতে হবে।

২. দেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও সামাজিক-ধর্মীয় মূল্যবোধ, রাষ্ট্রীয় ভাবমূর্তি ও জাতীয় নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয় এমন কোনো কার্যকলাপ এবং উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়া ও প্রচারপত্র বিলি করা যাবে না।

৩. সমাবেশে আসা-যাওয়ার পথে শোভাযাত্রা ও মিছিল করাসহ আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে, এমন কর্মকাণ্ড করা যাবে না। ব্যানার, ফেস্টুন ও পতাকাতে কোনো লাঠিসোঁটা ও রড ব্যবহার করা যাবে না। ব্যানার, ফেস্টুনের ব্যবহার সীমিত করতে হবে।

৩. আজান, নামাজ ও অন্যান্য ধর্মীয় সংবেদনশীল সময় মাইক বা শব্দযন্ত্র ব্যবহার করা যাবে না। ধর্মীয় অনুভূতির ওপর আঘাত আসতে পারে এমন কোনো বিষয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন, বক্তব্য দেয়া বা প্রচার করা যাবে না।

৫. মঞ্চ তৈরির সঙ্গে যারা জড়িত (আইডি কার্ডসহ) তারা ব্যতীত অন্য কেউ আগামী ৩ ডিসেম্বর সমাবেশের আগে সমাবেশস্থলে প্রবেশ কিংবা অবস্থান করতে পারবে না। সমাবেশের যাবতীয় কার্যক্রম ওই দিন দুপুর ২টা থেকে বিকেল ৫টার মধ্যে শেষ করতে হবে। সমাগত নেতা-কর্মীরা যাতে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে না পারে, সেটি দায়িত্বশীল নেতা বা আয়োজকদের নিশ্চিত করতে হবে।

৬. নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশস্থলের ভেতর-বাইরে উন্নত রেজ্যুলেশনের সিসিটিভি ক্যামেরা বসাতে হবে। সমাবেশস্থলের বাইরে বা সড়কের পাশে প্রজেক্টর বা মাইক বা সাউন্ড বক্স ব্যবহার করা যাবে না। সমাবেশস্থলে ইন্টারনেট সংযোগ, ব্রডব্যান্ড সংযোগ ও রাউটার ব্যবহার করা যাবে না।

৭. সমাবেশে ব্যবহার করা যানবাহন শহরের ভেতরে প্রবেশ করানো যাবে না। রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশের কর্মসূচি পালন থেকে বিরত থাকতে হবে। পার্কিংয়ের জন্য নির্ধারিত স্থানে গাড়ি পার্কিং করতে হবে। মূল সড়কে পার্কিং করা যাবে না।

৮. এই অনুমতিপত্র স্থান ব্যবহারের অনুমতি নয়। স্থান ব্যবহারের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হবে। জনস্বার্থে কর্তৃপক্ষ কোনো কারণ দর্শানো ছাড়া অনুমতি আদেশ বাতিল করার ক্ষমতা রাখে।

সমাবেশের অনুমতির বিষয়ে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু বুধবার দুপুরে বলেন, ‘আমরা এইমাত্র হাতে চিঠি পেয়েছি, তবে তারা যে শর্ত দিয়েছে, সেগুলো মানলে তো আর সমাবেশ করা যাবে না। আমাদের অনেক লোকজনই বিভিন্ন জেলা থেকে আজকেই এসে যাবে।’

এদিকে বিএনপির সমাবেশস্থল রাজশাহীর মাদ্রাসা মাঠে বুধবার সকাল থেকে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

গত কয়েক দিন থেকেই এ মাঠে অল্পসংখ্যক পুলিশ ছিল। বুধবার এ সংখ্যা কয়েক গুণ বাড়ানো হয়।

মাদ্রাসা মাঠের ভেতর ছাড়াও প্রবেশপথে পুলিশ রয়েছে। মাঠে কাউকেই প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না।

আরও পড়ুন:
ডিসেম্বরেই আওয়ামী লীগকে পরাজিত করতে হবে: দুদু
কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশে মোবাইল হারানোর ৭১ জিডি
কুমিল্লা সমাবেশ: বিএনপির ভেতরে ক্ষোভের আগুন
কুমিল্লায় সমাবেশ নিয়ে সাক্কু-কায়সারের রাজ্যের হতাশা
সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ কুমিল্লার সমাবেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Trains stopped on Dhaka Narayanganj route from December 4

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ৪ ডিসেম্বর থেকে ট্রেন বন্ধ

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ৪ ডিসেম্বর থেকে ট্রেন বন্ধ ফাইল ছবি
পদ্মা সেতু রেল-সংযোগ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা থেকে গেন্ডারিয়া অংশে তিনটি পৃথক রেললাইনের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। কাজটি দ্রুত সম্পন্নের লক্ষ্যে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচলকারী সব ট্রেন ৪ ডিসেম্বর থেকে সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

আসন্ন ৪ ডিসেম্বর থেকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে ট্রেন চলাচল সাময়িক বন্ধ থাকবে। ওই রুটে তিনটি রেললাইন নির্মাণকাজের জন্য এ সিদ্ধান্ত।

রেল মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা শরিফুল আলম বুধবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি জানান, পদ্মা সেতু রেল-সংযোগ প্রকল্পের আওতায় ঢাকা থেকে গেন্ডারিয়া অংশে তিনটি পৃথক রেললাইনের নির্মাণকাজ চলমান রয়েছে। কাজটি দ্রুত সম্পন্নের লক্ষ্যে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচলকারী সব ট্রেন ৪ ডিসেম্বর থেকে সাময়িকভাবে বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

শরিফুল আলম জানান, দ্রুত কাজ শেষে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে পুনরায় ট্রেন চলাচল শুরু হবে। যাত্রীসাধারণের সাময়িক অসুবিধার জন্য রেল‌ওয়ের পক্ষ থেকে আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করা হচ্ছে।

ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনের পরিবহন কর্মকর্তা আমিনুল হক নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন, ঢাকা-নারায়ণঞ্জ রুটে প্রতিদিন ১০ জোড়া ট্রেন চলাচল করে। যার মধ্যে ৮ জোড়া লোকাল ট্রেন ও দুটি ডিজেল ইলেকট্রিক মাল্টিপল ইউনিট-ডেমু ট্রেন রয়েছে।

তিনি জানান, ধারণা করা হচ্ছে তিন মাস এই কাজ চলবে। তবে নির্ধারিতভাবে কত সময় কেউ বলতে পারছেন না।

জানা গেছে, ঢাকার গেন্ডারিয়ার কাছে পদ্মা সেতুতে রেল-সংযোগ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। যা মাওয়া হয়ে সেতুর আরেক প্রান্ত ফরিদপুরের ভাঙ্গা জংশনে যাবে।
এ ছাড়া ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটেও ডুয়েলগেজ রেললাইন নির্মাণের কাজ চলছে। এসব কারণে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচল সাময়িকভাবে বন্ধ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ঢাকা-ময়মনসিংহে এক ঘণ্টা পর ট্রেন চালু
মহাখালীতে ট্রেনের ধাক্কায় যুবক নিহত
রেললাইনে আটকে যাওয়া ভটভটিকে দুমড়েমুচড়ে দিল ট্রেন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
All wards will have gymnasiums Mayor Tapas

সব ওয়ার্ডে হবে ব্যায়ামাগার: মেয়র তাপস

সব ওয়ার্ডে হবে ব্যায়ামাগার: মেয়র তাপস ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। ছবি: নিউজবাংলা
‘৭৫টি ওয়ার্ডে মাত্র ১৭টি শরীরচর্চা কেন্দ্র আছে। আমরা প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্রের সঙ্গে একটি শরীরচর্চা কেন্দ্র রাখতে চাই। সেজন্য নতুন প্রকল্প নিচ্ছি। নতুন ৩৬টি সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। প্রত্যেকটা ওয়ার্ডেই জনগণের জন্য ব্যায়ামাগার সেবা নিশ্চিত করতে চাই।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) আওতাধীন প্রতিটি ওয়ার্ডে ব্যায়ামাগার নির্মাণের ঘোষণা দিয়েছেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।

মঙ্গলবার দুপুরে ডিএসসিসির প্রধান কার্যালয় নগর ভবনে করপোরেশনের দ্বিতীয় পরিষদের সপ্তদশ বোর্ড সভা হয়। সেখানে ডিএসসিসির আওতাধীন ব্যায়ামাগারসমূহ পরিচালনা নীতিমালা-২০২২ অনুমোদন দেয়া হয়।

মেয়র তাপস বলেন, ‘আমাদের ৭৫টি ওয়ার্ডে মাত্র ১৭টি শরীরচর্চা কেন্দ্র আছে। আমরা প্রত্যেকটা ওয়ার্ডে সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্রের সঙ্গে একটি শরীরচর্চা কেন্দ্র রাখতে চাই। সেজন্য নতুন প্রকল্প নিচ্ছি। নতুন ৩৬টি সামাজিক অনুষ্ঠান কেন্দ্র নির্মাণ করা হবে। প্রত্যেকটা ওয়ার্ডেই জনগণের জন্য ব্যায়ামাগার সেবা নিশ্চিত করতে চাই।

‘ব্যামাগারের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে নীতিমালা করা হয়েছে। কমিটির সুপারিশের আলোকে এলাকাভেদে ব্যায়ামাগারগুলোর ভাড়া নির্ধারণ করা হবে। বিদ্যমান আয়তন, সুবিধাদি ও যন্ত্রপাতি বিবেচনা করে ব্যায়ামাগারগুলোকে ক, খ ও গ তিনটি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হয়েছে। যারা ব্যায়ামাগার পরিচালনা করবেন তাদের অবশ্যই ট্রেড লাইসেন্স থাকতে হবে।’

সভায় করপোরেশনের কাউন্সিলরা ছাড়াও ডিএসসিসির ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সচিব আকরামুজ্জামান, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা এয়ার কমডোর সিতওয়াত নাঈম, প্রধান প্রকৌশলী সালেহ আহম্মেদ, পরিবহন মহাব্যবস্থাপক মো. হায়দর আলী, ভারপ্রাপ্ত প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবির, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা আরিফুল হকসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুরের চেয়ে বাংলাদেশের উন্নতি দ্রুত: তাপস
মেয়র তাপসকে নিয়ে গুজব ছড়ানোর মামলার প্রতিবেদন পেছাল
ঢাকা এখন আর বর্জ্যের শহর নয়: মেয়র তাপস
ফার্মেসি খোলা ২৪ ঘণ্টা, তাপসের নির্দেশ নাকচ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর
মেয়র তাপসের মামলা: তদন্ত প্রতিবেদন জমার সময় পেছাল

মন্তব্য

p
উপরে