× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Maryams mother in 4 districts in 13 days for only 1 thousand taka
hear-news
player
google_news print-icon

মাত্র ১ হাজার টাকায় ১৩ দিনে ৪ জেলায় মরিয়মের মা!

মাত্র-১-হাজার-টাকায়-১৩-দিনে-৪-জেলায়-মরিয়মের-মা
পুলিশ হেফাজতে থাকা রহিমা বেগমের দাবি, তিনি অপহৃত হয়েছিলেন। ছবি: সংগৃহীত
রহিমা বেগমের দাবি সত্যি হলে, ২৭ আগস্ট তিনি অপহৃত হওয়ার পর ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কিবরিয়া ও মহিউদ্দীনরা তার কাছ থেকে স্ট্যাম্পে সই নিয়ে ছেড়ে দেন। এরপর তিনি চট্টগ্রাম, বান্দরবান, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর হয়ে ১৭ সেপ্টেম্বর ফরিদপুরের বোয়ালখালী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামে কুদ্দুস মোল্লার বাড়িতে যান।

খুলনা মহেশ্বরপাশা থেকে নিখোঁজ রহিমা বেগম দাবি করছেন, তিনি অপহৃত হয়েছিলেন। তবে মামলার তদন্ত কর্তৃপক্ষ পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) বলছে, প্রাথমিক আলামতে মনে হচ্ছে এই দাবি সঠিক নয়। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।

রহিমা বেগমকে শনিবার অক্ষত অবস্থায় ফরিদপুরের বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রাম থেকে উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

মায়ের নিখোঁজের তথ্য জানিয়ে প্রায় এক মাস ধরে তার সন্ধান করছিলেন তার মেয়ে মরিয়ম মান্নান। মরিয়মের কান্নার ছবি ছুঁয়ে যায় সবাইকে।

বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামে কুদ্দুস মোল্লার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় রহিমা বেগমকে। কুদ্দুস মোল্লার স্বজনদের দাবি, রহিমা তাদের বলেছিলেন সম্পত্তি নিয়ে প্রতিবেশী ও মেয়েদের সঙ্গে তার বিরোধ চলছিল। এ কারণেই তিনি বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান।

ফরিদপুর থেকে উদ্ধারের পর থেকে নিশ্চুপ ছিলেন রহিমা বেগম। খুলনার সোনাডাঙ্গায় ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রোববার সকালে মরিয়ম মান্নানসহ অন্য সন্তানরা দেখা করতে গেলেও তাদের সঙ্গে কথা বলেননি তিনি।

পুলিশের অনুরোধে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের জানালার কাছে এসে দাঁড়ান রহিমা বেগম। মরিয়ম মান্নান এ সময় ‘মা’ বলে ডাক দিলে তিনি মুখ ঘুরিয়ে নিয়ে হেঁটে চলে যান।

তবে দুপুরের পরে মরিয়মসহ অন্য মেয়েরা পিবিআই কার্যালয়ে এসে রহিমা বেগমকে জড়িয়ে ধরেন। তখন কান্নায় ভেঙে পড়েন রহিমা।

মাত্র ১ হাজার টাকায় ১৩ দিনে ৪ জেলায় মরিয়মের মা!
খুলনা পিবিআই কার্যালয়ে মায়ের সঙ্গে দেখা করেন মরিয়ম ও তার বোনেরা

দৌলতপুর থানার উপপরিদর্শক দোলা দে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে থাকা অবস্থায় তার (রহিমা) মেয়েরা দেখা করতে এসেছিল। তবে তিনি কোনোভাবেই রাজি হচ্ছিলেন না। পরে আমার অনুরোধে জানালার কাছে এসেছিলেন। মরিয়ম মা বলে ডাক দিলে আবার ভেতরে চলে যান। পরে তাকে আমরা পিবিআই খুলনা জেলা কার্যালয়ে হস্তান্তর করি।

‘পিবিআই কার্যালয়েও তাকে নানাভাবে জিজ্ঞাসাবাদের চেষ্টা করা হয়। তবে প্রথম দিকে তিনি একেবারে নিশ্চুপ ছিলেন।’

খুলনা পিবিআই পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা নানাভাবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তবে কোনোভাবেই তিনি মুখ খুলতে চাননি।

‘তবে দুপুরের পর তার মেয়ে মরিয়মসহ অন্যরা পিবিআই কার্যালয়ে এসে রহিমা বেগমকে জড়িয়ে ধরেন। তখন কান্নায় ভেঙে পড়েন রহিমা বেগম।’

সৈয়দ মুশফিকুর রহমান বলেন, ‘মেয়েদের সঙ্গে দেখা হওয়ার পর রহিমা বেগম মুখ খুলেছেন। তিনি জানিয়েছেন, প্রতিবেশী কিবরিয়া ও মহিউদ্দীনসহ তিনজন তাকে অপহরণ করেছিল। তাকে কোথাও আটকে রেখে ব্ল্যাংক স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে নিয়েছেন। পরে ১ হাজার টাকা দিয়ে তাকে ছেড়ে দেন।’

পুলিশ সুপার বলেন, ‘রহিমা বেগমের দাবি, তিনি কিছুই চিনতে পারছিলেন না। ছাড়া পাওয়ার পর তিনি চট্টগ্রাম ও বান্দরবান যান। পরে গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর হয়ে পূর্বপরিচিত ভাড়াটিয়ার ফরিদপুরের বোয়ালখালী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামে যান। তার কাছে কোনো মোবাইল নাম্বার না থাকায় কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি।’

রহিমা বেগম যাদের বিরুদ্ধে জোর করে স্ট্যাম্পে সই নেয়ার অভিযোগ তুলেছেন সেই গোলাম কিবরিয়া, মহিউদ্দীনসহ চারজনকে ৪ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এর আগে ৩০ আগস্ট গ্রেপ্তার করা হয় হেলাল শরীফ নামে আরেকজনকে। সর্বশেষ ১২ সেপ্টেম্বর রহিমার স্বামী বিল্লাল ঘটককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তারা সবাই কারাগারে আছেন।

রহিমার দাবি সত্যি হলে, ২৭ আগস্ট তিনি অপহৃত হওয়ার পর ৪ সেপ্টেম্বরের মধ্যে কিবরিয়া ও মহিউদ্দীনরা তার কাছ থেকে স্ট্যাম্পে সই নিয়ে ছেড়ে দেন। এরপর তিনি চট্টগ্রাম, বান্দরবান, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর হয়ে ১৭ সেপ্টেম্বর ফরিদপুরের বোয়ালখালী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামে কুদ্দুস মোল্লার বাড়িতে যান।

মাত্র ১ হাজার টাকায় ১৩ দিনে ৪ জেলায় মরিয়মের মা!
শনিবার রাতে ফরিদপুর থেকে উদ্ধারের পর খুলনায় নেয়া হয় রহিমাকে। ছবি: নিউজবাংলা

অপহরণকারীদের দেয়া মাত্র ১ হাজার টাকায় অন্তত ১৩ দিন তিনি দেশের বিভিন্ন জেলায় কীভাবে কাটালেন সেই প্রশ্নের জবাব খুঁজছে পিবিআই।

রহিমা অপহৃত হওয়ার অভিযোগ তদন্ত করা হচ্ছে জানিয়ে পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার সৈয়দ মুশফিকুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রহিমা বেগমকে উদ্ধারের সময়ে তার কাছ থেকে একটি সাদা ব্যাগ পাওয়া গেছে। তাতে ওষুধ ছিল, পোশাকসহ অন্য মালামাল ছিল। একজন ব্যক্তি অপহরণ হলে তার সঙ্গে এগুলো থাকতে পারে না। তাই এটা অপহরণ নাও হতে পারে।

‘আমরা রহিমা বেগমের বক্তব্য খতিয়ে দেখছি। অনেক রহস্য রয়ে গেছে। তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আইন অনুযায়ী তদন্ত শেষে সবকিছু প্রকাশ করা হবে।’

যে বাড়ি থেকে উদ্ধার তারা যা বলছেন

ফরিদপুরের বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামে কুদ্দুস মোল্লার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয় রহিমা বেগমকে।

কুদ্দুস মোল্লার ভাগনে জয়নাল ব্যাপারীর দাবি, তিনি শুক্রবার রাতেই রহিমার অবস্থানের তথ্য মরিয়ম মান্নানের পরিবারকে জানিয়েও কোনো সাড়া পাননি।

জয়নাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মোবাইল ফোনে শুক্রবার বিকেলে যমুনা টিভিতে তার নিখোঁজ সংবাদ দেখি। রহিমার সঙ্গে মিল দেখে আমি বাড়িতে গিয়ে তার চেহারার সঙ্গে মেলাই, দেখি উনিই সেই জন।

“রহিমা বেগমকে ভিডিও দেখালে শুধু বলে ‘এটা তো আমি’। তখন তাকে খোঁজা হচ্ছে জানালে সে বলে ‘আমি বাড়ি ফিরে যাব না।”

জয়নাল বলেন, ‘এরপর আমি যমুনা টিভির ভিডিওতে কমেন্ট করি। সেখানে কোনো উত্তর না পেয়ে আবার সার্চ দিতে থাকি। তখন নিখোঁজ বার্তায় তার ছেলে মিরাজের নম্বর পাই। শুক্রবার রাতে মিরাজের নম্বরে কল দিলে তার স্ত্রী ফোন ধরে।

“আমি তাকে বলি রহিমা বেগম এখানে আছে। তখন অপর পাশ থেকে উত্তর আসে ‘আমি ওনাকে চিনি না। এ নম্বরে আর ফোন দেবেন না’। এই বলে সে ফোন কেটে দেয়।”

জয়নাল বলেন, ‘তার ছেলে–মেয়ে তাকে (রহিমা) কেউ পছন্দ করে না। তিনি বাড়িতে ফিরে যাবেন না। তিনি বাড়ি গেলে তাকে মেরে ফেলা হবে বলেও জানান রহিমা বেগম। তারা বাড়ি বিক্রি করতে চাপ দিচ্ছিল। বাড়ি বেচার টাকা নিয়ে অন্যত্র চলে যাবে। তিনি তাতে রাজি নন।’

মাত্র ১ হাজার টাকায় ১৩ দিনে ৪ জেলায় মরিয়মের মা!
বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামে কুদ্দুস মোল্লার এই বাড়িতে ছিলেন রহিমা। ছবি: নিউজবাংলা


কুদ্দুস মোল্লার বড় মেয়ের জামাই নূর মোহাম্মদের দাবি, সম্পত্তি নিয়ে প্রতিবেশী ও মেয়েদের সঙ্গে রহিমার বিরোধ চলছিল। এ কারণেই তিনি বাড়ি থেকে চলে এসেছিলেন।

নূর মোহাম্মদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রহিমা বেগম আমাদের এখানে এসে বলেছিলেন আমাকে একটা কাজ খুঁজে দেন, আমি আর বাড়ি ফিরে যাব না। যেকোনো কাজ, ইটভাটার হোক, জুট মিলের হোক বা বাসাবাড়ির হোক।

‘আমার মেয়েদের সঙ্গে আমার শত্রুতা, মেয়েরা আমাকে ভালো জানে না, তারা আমাকে চায় না, আমার সম্পত্তি চায়। প্রতিবেশীও আমার সম্পত্তি চায়।’

কুদ্দুস মোল্লার প্রতিবেশীদেরও একই কথা বলেছেন রহিমা বেগম।

নূর মোহাম্মদ নিউজবাংলাকে জানান, রহিমা বেগম ১৭ সেপ্টেম্বর তাদের বাড়িতে আসেন।

তিনি বলেন, ‘ওইদিন বিকেলে রহিমা বেগম সৈয়দপুর বাজারে আসেন। তিনি অনেক দোকানে কুদ্দুস মোল্লার বাবা মোতালেব মুসল্লির বাড়ি খুঁজছিলেন। এই বাজারেই আমার দোকান আছে। এক দোকানদার আমার দাদা শ্বশুরকে খুঁজছে দেখে আমার কাছে নিয়ে আসে।

‘আমি তাকে বাড়িতে পাঠাই। বাড়ি গিয়ে আমার শাশুড়ি প্রথমে চিনতে পারছিলেন না। মরিয়মের মা তখন বলতে থাকেন, খুলনায় আমার বাড়িতে আপনারা ভাড়া ছিলেন, আমি মিরাজের মা, হুজুরের বউ। তখন চিনতে পেরে তাকে ভেতরে নিয়ে যান। সে বলেছিল, আমি বেড়াতে আসছি, দুই-তিন দিন থাকব। আমরা অতিথি ভেবে স্বাভাবিক আচরণ করেছি।’

মাত্র ১ হাজার টাকায় ১৩ দিনে ৪ জেলায় মরিয়মের মা!

নূর মোহাম্মদ বলেন, ‘এর মধ্যে তিনি (রহিমা) দুই বার বোয়ালমারী সদর হাসপাতালে গেছেন চোখ দেখাতে। একদিন গেছেন ইউনিয়ন কার্যালয়ে। তিনি বাইরে গিয়ে কারও সঙ্গে যোগাযোগ করতেন কি না বা বা টাকা কোথা থেকে পেতেন সেটা বলতে পারছি না।’

প্রতিবেশী স্থানীয় মেম্বার মোশারফ হোসেন মূসা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শনিবার সকালে জয়নাল আমাকে রহিমা বেগমের নিখোঁজের বিষয়টি জানায়। তখন আমি খুলনা সিটি করপোরেশনের ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল ইসলামকে অবগত করি। আমি একটা সালিশে গিয়েছিলাম তার অফিসে। তিনি মিটিংয়ে ছিলেন জানিয়ে পরে কথা বলবেন বলেন।

‘পরে বিকেল ৫টার দিকে তিনি আমাকে কল দেন। বলেন, এ রকম একটা ঘটনা আছে। কাউন্সিলর বলেন আপনি ওই নারীকে দেখে রাখেন, আমরা আসব। এর মধ্যেই রাত ১০টার দিকে আমাকে ফোন করে লোকেশন জানতে চান, সাড়ে ১০টার দিকে তারা উপস্থিত হন। পরে খুলনা পুলিশ বোয়ালমারী থানাকে ইনফর্ম করে তাকে (রহিমা) খুলনা নিয়ে যান।’

আরও পড়ুন:
মায়ের আত্মগোপনে মরিয়ম মান্নানও জড়িত!
মরিয়ম মান্নানের মাকে উদ্ধার, ছিলেন আত্মগোপনে
বস্তাবন্দি মরদেহ মরিয়ম মান্নানের মায়ের কি না সংশয়
স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবক
স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে কিশোরী ‘অপহরণ’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Order to publish name of borrowers on website

ঋণগ্রহীতাদের নাম ওয়েবসাইটে প্রকাশের নির্দেশ

ঋণগ্রহীতাদের নাম ওয়েবসাইটে প্রকাশের নির্দেশ
হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে, ব্যাংকের টাকা জনগণের টাকা। জনগণের টাকা আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক কাকে দিচ্ছে, তা জনগণের জানার অধিকার আছে। তাই প্রত্যেক ঋণ মঞ্জুরের সঙ্গে সঙ্গে মঞ্জুরের অনুমতিপত্র সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করার নির্দেশ দেয়া হলো।

ঋণগ্রহীতাদের নামের তালিকা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

চেক ডিজআনার মামলা না নিতে নির্দেশনা দিয়ে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশ হয়েছে। ১৩ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়ে বৃহস্পতিবার এ নির্দেশনা দিয়েছে আদালত।

এদিকে এ রায়ের কার্যকারিতা দুই মাসের জন্য স্থগিত করেছে আপিল বিভাগ। এ সময়ের মধ্যে নিয়মিত আপিল ফাইল করতে বলেছে সর্বোচ্চ আদালত।

এদিকে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায়ে বলা হয়েছে, ব্যাংকের টাকা জনগণের টাকা। জনগণের টাকা আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা ব্যাংক কাকে দিচ্ছে, তা জনগণের জানার অধিকার আছে। তাই প্রত্যেক ঋণ মঞ্জুরের সঙ্গে সঙ্গে মঞ্জুরের অনুমতিপত্র সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করার নির্দেশ দেয়া হলো।

লিখিত রায়ে আদালত বলেছে, আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ঋণের বিপরীতে জামানত হিসেবে গৃহীত চেক বিনিময়যোগ্য দলিল নয় হেতু এমনতর চেক প্রত্যাখ্যানের মোকদ্দমা গ্রহণে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হলো। যদি কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান এমনতর চেক প্রত্যাখ্যানের মোকদ্দমা করে তবে তা বিচারিক আদালত সরাসরি প্রত্যাখ্যান করবে।

দ্বিতীয়ত, আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ঋণের বিপরীতে জামানত হিসেবে গৃহীত চেক হতে উদ্ভূত চেক প্রত্যাখ্যানের ইতোমধ্যে দাখিল করা সব মোকদ্দমার কার্যক্রম এখতিয়ার বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতি নির্দেশনা প্রদান জরুরি বিধায় নির্দেশ প্রদান করা যাচ্ছে যে আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রতিটি ঋণের বিপরীতে ইনস্যুরেন্স বাধ্যতামূলক করে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের প্রতি অনতিবিলম্বে বাংলাদেশ ব্যাংক নির্দেশনা জারি করবে।

আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক সব ঋণ প্রদানে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা ও আধুনিকীকরণের পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ প্রদান করবে এবং নিয়মিত বিরতিতে তা দেখাশোনা করবে।

আদালত বলে, বর্তমানে দেখা যাচ্ছে যে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহ জাতীয় সংসদ কর্তৃক প্রণীত অর্থঋণ আদালত আইন, ২০০৩-কে পাশ কাটিয়ে ঋণগ্রহীতা থেকে তাদের খেয়ালখুশিমতো বেআইনিভাবে জামানতস্বরূপ ব্লাঙ্ক চেক গ্রহণ করছে। তাদের খেয়ালখুশিমতো ওই ব্লাঙ্ক চেকে টাকার অঙ্ক বসিয়ে চেক প্রত্যাখ্যান করে ঋণগ্রহীতার বিরুদ্ধে চেক প্রত্যাখ্যানের মোকদ্দমা করে সাধারণ জনগণকে বিশেষ করে কৃষক, ক্ষুদ্র এবং ছোট ব্যবসায়ীদের জেলে পাঠিয়েছে।

যেহেতু আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহকে অর্থঋণ আদালত আইন, ২০০৩ মোতাবেকই তার খেলাপি ঋণ তথা অনাদায়ী ঋণ আদায়ের পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে, সেহেতু ঋণগ্রহীতার বিরুদ্ধে খেলাপি ঋণ আদায়ে চেক প্রত্যাখ্যানের মোকদ্দমার কোনো সুযোগ নেই। তবে আর্থিক প্রতিষ্ঠান যদি তার নিজস্ব কোনো সম্পত্তি বিক্রি করে এবং বিনিময়ে সম্পত্তির ক্রেতা থেকে কোনো চেক গ্রহণ করে এবং পরে যদি সেই চেক প্রত্যাখ্যাত হয় তখন আর্থিক প্রতিষ্ঠান ওই চেক প্রত্যাখ্যানের বিরুদ্ধে চেকের মামলা করতে পারবে।

কিন্তু কোনোভাবেই ঋণ আদায়ের নিমিত্তে চেক জামানত হিসেবে গ্রহণ করে তা প্রত্যাখ্যানের মাধ্যমে চেক প্রত্যাখ্যানের মামলা করতে আইনত অধিকারী নয়। ফলে বাদী কর্তৃক অত্র চেক প্রত্যাখ্যানের মোকদ্দমা আইন ও বিধিবহির্ভূত বিধায় বাদীর মোকদ্দমাই বেআইনি।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণে গ্রেপ্তার ১২ কৃষকের জামিন
বড় ঋণখেলাপিরা কি বিচারের ঊর্ধ্বে, প্রশ্ন হাইকোর্টের
ঋণখেলাপি মামলায় ১২ কৃষক কারাগারে
বিদেশি ঋণেও যুদ্ধের ধাক্কা, ৪ মাসে কমল ২৫ শতাংশ
গরিবদের থেকে এনজিওর বেশি সুদ আদায় অন্যায়: গভর্নর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
10 accused in militant robbery case remanded for 5 more days

জঙ্গি ছিনতাই মামলায় ১০ আসামি আরও ৫ দিনের রিমান্ডে

জঙ্গি ছিনতাই মামলায় ১০ আসামি আরও ৫ দিনের রিমান্ডে সিসিটিভি ফুটেজে আদালত থেকে জঙ্গিদের পালানোর দৃশ্য। ছবি: সংগৃহীত
বৃহস্পতিবার তাদের ১০ দিনের রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য পুনরায় তাদের পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) পরিদর্শক মুহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ। ঢাকা মহানগর হাকিম শফি উদ্দিনের আদালতে এ রিমান্ড শুনানি হয়।

ঢাকার বিচারিক আদালত প্রাঙ্গণ থেকে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় করা মামলায় ১০ আসামিকে ফের পাঁচ দিন করে রিমান্ডে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার তাদের ১০ দিনের রিমান্ড শেষে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য পুনরায় তাদের পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিটের (সিটিটিসি) পরিদর্শক মুহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ।

ঢাকা মহানগর হাকিম শফি উদ্দিনের আদালতে এ রিমান্ড শুনানি হয়।

এর আগে গত ২০ নভেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম শফি উদ্দিন তাদের ১০ দিনের রিমান্ডে পাঠানোর আদেশ দেন।

আসামিরা হলেন শাহীন আলম ওরফে কামাল, শাহ আলম ওরফে সালাউদ্দিন, বি এম মজিবুর রহমান, সুমন হোসেন পাটোয়ারী, আরাফাত রহমান, খাইরুল ইসলাম ওরফে সিফাত, মোজাম্মেল হোসেন, শেখ আব্দুল্লাহ, আ. সবুর, রশিদুন্নবী ভূঁইয়া প্রমুখ।

গত ২০ নভেম্বর ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত প্রাঙ্গণ থেকে দুই জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় রাজধানীর কোতোয়ালি থানায় ২০ জনের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা করেন পুলিশ পরিদর্শক জুলহাস উদ্দিন আকন্দ। মামলায় অজ্ঞাতনামা আরও ৭-৮ জনকে আসামি করা হয়।

সেদিন সকালে সন্ত্রাসবিরোধী আইনের মামলার ১২ আসামিকে কাশিমপুর-২ কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে ঢাকার আদালতে আনা হয়।

সকাল ৯টা ৪০ মিনিটের দিকে ঢাকার প্রসিকিউশন বিভাগে আসামিদের হাজিরা দেয়ার জন্য সিজেএম আদালত ভবনে সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনাল-৮-এ নিয়ে যাওয়া হয়। মামলার শুনানি শেষে জামিনে থাকা দুই আসামি মো. ঈদী আমিন ও মেহেদী হাসান অমি ওরফে রাফি আদালত থেকে বের হয়ে যান।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিটের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোর্টের শুনানি শেষে প্রথমে চারজনকে নিচে নামিয়ে আনা হয়। দুটি হাতকড়া দিয়ে দুজনকে আটকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। বাকি আসামিরা তখন ওপরে ছিলেন।

‘চারজনের মধ্যে মইনুল হাসান ও আবু সিদ্দিককে জঙ্গিরা ছিনিয়ে নিয়ে যায়। তবে মো. আরাফাত ও মো. সবুরকে নিতে পারেনি। জঙ্গিরা পেপার স্প্রে ব্যবহার করে। এতে একজন সিকিউরিটি গার্ড, একজন পুলিশ সদস্যসহ কয়েকজন সাধারণ মানুষ আক্রান্ত হন।’

আরও পড়ুন:
জঙ্গি ছিনতাই মামলায় একজনের আত্মসমর্পণ, চার দিনের রিমান্ড
২৯ বছর ধরে ঝুলে থাকা মামলা নিষ্পত্তির নির্দেশ
‘কারাবন্দি জঙ্গি ও ছিনতাই টিম সমন্বয় করেন অমি’
জঙ্গি ছিনতাই মামলায় গ্রেপ্তার মেহেদী ৭ দিনের রিমান্ডে
জঙ্গি আরাফাতকে ছিনিয়ে নেয়াই ছিল মূল লক্ষ্য

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Reinvestigation of money laundering case against Falu on February 23

ফালুর বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলার পুনঃ তদন্ত ২৩ ফেব্রুয়ারি

ফালুর বিরুদ্ধে অর্থ পাচার মামলার পুনঃ তদন্ত ২৩ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পরিষদের সাবেক সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালু। ছবি: সংগৃহীত
অফশোর কোম্পানি খুলে ১৮৩ কোটি ৯২ লাখ টাকা দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগে ফালুসহ চার ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়।

দুবাইয়ে প্রায় ১৮৪ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা পরিষদের সাবেক সদস্য মোসাদ্দেক আলী ফালুসহ তিনজনের বিরুদ্ধে করা মামলায় পুনঃ তদন্তের আবেদন মঞ্জুর করেছে আদালত।

বৃহস্পতিবার ঢাকার বিভাগীয় বিশেষ জজ সৈয়দ কামাল হোসেনের আদালত এ আবেদন মঞ্জুর করে। মামলার পুনঃ তদন্ত প্রতিবেদন জমার জন্য ২৩ ফেব্রুয়ারি দিন ঠিক করেছে আদালত।

গত ২৭ অক্টোবর একই আদালতে এই আবেদন করেছিলেন দুদকের আইনজীবী মীর আহম্মদ আলী সালাম।

২০২১ সালের ১৩ ডিসেম্বর ফালুসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গ্রহণ করে আদালত। এ সময় ফালু পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়।

অন্য দুই আসামি হলেন আরএকে সিরামিকসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এ কে একরামুজ্জামান ও স্টার সিরামিকস প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক সৈয়দ এ কে আনোয়ারুজ্জামান।

স্টার সিরামিকস প্রাইভেট লিমিটেডের পরিচালক আমির হোসাইনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে অব্যাহতি দেয়ার আবেদন করা হয়েছে।

অফশোর কোম্পানি খুলে ১৮৩ কোটি ৯২ লাখ টাকা দুবাইয়ে পাচারের অভিযোগে ফালুসহ চার ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়।

২০১৯ সালের ১৩ মে রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানায় দুদকের উপপরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইনে মামলাটি করেন।

দুদকের অভিযোগে বলা হয়েছে, ২০১০ সালে মোসাদ্দেক আলী ফালু, একরামুজ্জামান, আনোয়ারুজ্জামান ও আমির হোসাইন দুবাইয়ে আল মদিনা ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড ও থ্রি স্টার লিমিটেড নামে অফশোর কোম্পানি খোলেন। পরে তারা বাংলাদেশে ‘দুর্নীতির মাধ্যমে’ অর্জিত ১৮৩ কোটি ৯২ লাখ টাকা দুবাইয়ে পাচার করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, দুবাইয়ে ওই অর্থ উর্পাজনের কোনো উৎস তারা দেখাতে পারেননি। ওই টাকা কীভাবে উপার্জন করা হয়েছে তার কোনো তথ্যপ্রমাণও তাদের কাছে নেই।

এজাহারে আরও বলা হয়েছে, দুবাইয়ে ব্যবসা করার কথা তারা বাংলাদেশ ব্যাংককে কখনও জানাননি বা কোনো ধরনের অনুমতি নেননি।

দুদকের অভিযোগ, বিএনপি ক্ষমতায় থাকার সময় ফালু ক্ষমতার অপব্যবহার করে দেশে অর্জিত অর্থ বিদেশে পাচার করে অফশোর কোম্পানিতে বিনিয়োগ করেন।

আরও পড়ুন:
ফালুর বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের মামলায় ফের তদন্তের আবেদন
ফালুর দখল করা জমি উদ্ধার, ঠিকানা পেল ৬৪ পরিবার
অর্থ পাচারের মামলায় ফালুর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র

মন্তব্য

বাংলাদেশ
High Court decision not to take check dishonor case stayed

চেক ডিজঅনার মামলা না নিতে হাইকোর্টের রায় স্থগিত

চেক ডিজঅনার মামলা না নিতে হাইকোর্টের রায় স্থগিত প্রতীকী ছবি
আদালত আগামী দুই মাসের জন্য হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে মামলার আসামিদের জামিন বহাল রেখেছে।

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের করা চেক ডিজঅনার মামলা না নিতে হাইকোর্টের রায় স্থগিত করেছে আপিল বিভাগ।

বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীসহ পাঁচ বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালত আগামী দুই মাসের জন্য হাইকোর্টের রায় স্থগিত করে মামলার আসামিদের জামিন বহাল রেখেছে।

আদালতে ব্র্যাক ব্যাংকের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন। অন্যদিকে ছিলেন আব্দুল্লা আল বাকী।

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের করা চেক ডিজঅনার (চেক প্রত্যাখ্যান) মামলা না নিতে এবং এ-সংক্রান্ত সব মামলার কার্যক্রম স্থগিত করে ২৩ নভেম্বর রায় দেয় হাইকোর্ট। ওই রায় স্থগিত চেয়ে আপিলে আবেদন করে ব্র্যাক ব্যাংক।

পরে চেম্বার জজ আদালত ওই আবেদনের শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে পাঠিয়ে দেয়।

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান ঋণ আদায়ের জন্য শুধু ২০০৩ সালের অর্থঋণ আইনের বর্ণিত উপায়ে অর্থঋণ আদালতে মামলা করতে পারবে বলে রায় দেয় হাইকোর্ট।

রায়ে নিম্ন আদালতের প্রতি নির্দেশনা দিয়ে হাইকোর্ট বলে, ‘আজ থেকে কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান যদি চেক ডিজঅনার মামলা করে তাহলে আদালত তা সরাসরি খারিজ করে দেবেন। একই সঙ্গে তাদের ঋণ আদায়ের জন্য অর্থঋণ আদালতে পাঠিয়ে দেবেন।’

এ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করতে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরকে নির্দেশ দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
চেক ডিজঅনার মামলায় হাইকোর্টের রায় চেম্বার আদালতে স্থগিত
চেক ডিজঅনারে জেলে পাঠানো সংবিধান পরিপন্থি, হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
One person was hanged in Kashimpur jail in the freedom fighter murder case

বীর মুক্তিযোদ্ধা হত্যা: কাশিমপুর কারাগারে একজনের ফাঁসি কার্যকর

বীর মুক্তিযোদ্ধা হত্যা: কাশিমপুর কারাগারে একজনের ফাঁসি কার্যকর কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২। ছবি: নিউজবাংলা
কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এর সিনিয়র জেল সুপার আমিরুল ইসলাম জানান, সব আইনি প্রক্রিয়া শেষে বুধবার রাত ১১টা ১ মিনিটে ফাঁসি কার্যকর করা হয়। ওই সময় কারাগারসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

নারায়ণগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দীন মেম্বার হত্যা মামলায় কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এ বন্দি এক আসামির ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে।

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এর সিনিয়র জেল সুপার আমিরুল ইসলাম জানান, সব আইনি প্রক্রিয়া শেষে বুধবার রাত ১১টা ১ মিনিটে ফাঁসি কার্যকর করা হয়েছে। ওই সময় কারাগারসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

তিনি আরও জানান, ফাঁসি কার্যকর হওয়া ৪৭ বছর বয়সী কামাল ওরফে এক্সেল কামাল নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার কোতোয়ালেরবাগ এলাকায় থাকতেন।

কারা কর্তৃপক্ষের ভাষ্য, ২০০৪ সালে নারায়ণগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধা গিয়াস উদ্দীন মেম্বার হত্যা মামলায় ২০০৬ সালে নারায়ণগঞ্জ জেলা দায়রা জজ আদালত কামালকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। পরে হাইকোর্ট তার মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে।

ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে আপিল বিভাগও মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে। পরে আপিল বিভাগে রিভিউ আবেদন করা হলে গত ২৮ এপ্রিল সেটিও খারিজ করে মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখে সর্বোচ্চ আদালত। সবশেষে আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন করলে গত ১ নভেম্বর তা নাকচ হয়।

আরও পড়ুন:
সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড
আয়াতের দেহের খণ্ডিত অংশ উদ্ধার
বরিশালে অভিমান করে স্কুলছাত্রের আত্মহত্যা
গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা
গৃহবধূ হত্যার ১৬ বছর পর ৬ আসামির যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Erteza editor of Bhorer Pata is on permanent bail

ভোরের পাতার সম্পাদক এরতেজার স্থায়ী জামিন

ভোরের পাতার সম্পাদক এরতেজার স্থায়ী জামিন ‘দৈনিক ভোরের পাতা’র সম্পাদক ড. কাজী এরতেজা হাসান। ফাইল ছবি
এ দিন এরতেজা হাসান আইনজীবীর মাধ্যমে স্থায়ী জামিনের আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করে। জালিয়াতি ও প্রতারণার এ মামলায় তিনি ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত জামিনে ছিলেন।

জালিয়াতি ও প্রতারণার মামলায় ‘দৈনিক ভোরের পাতা’র সম্পাদক ড. কাজী এরতেজা হাসানকে স্থায়ী জামিন দিয়েছে আদালত।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর হাকিম আহম্মেদ হুমায়ুন কবিরের আদালতে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমার দিন ঠিক করা ছিল। কিন্তু তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন জমা না দেয়ায় আগামী ১ জানুয়ারি তদন্ত প্রতিবেদন জমার পরবর্তী দিন নির্ধারণ করেন বিচারক।

এ দিন এরতেজা হাসান আইনজীবীর মাধ্যমে স্থায়ী জামিনের আবেদন করলে আদালত তা মঞ্জুর করে।

এ মামলায় তিনি ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত জামিনে ছিলেন। গত ৭ নভেম্বর ঢাকা মহানগর হাকিম মেহেদী হাসান ২০ হাজার টাকা মুচলেকায় এরতেজা হাসানের ১ ডিসেম্বর পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করেছিলেন।

গত ১ নভেম্বর রাতে রাজধানীর গুলশানে ‘ইভা রোজ’ নামের একটি বাড়ি থেকে এরতেজাকে গ্রেপ্তার করে পিবিআই। পরে কল্যাণপুরে পিবিআই কার্যালয়ে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় তাকে।

পিবিআই জানায়, আশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের ভাই সাইফুল ইসলাম গত ১০ জানুয়ারি জালিয়াতি ও প্রতারণার একটি মামলা করেন।

খিলক্ষেত থানার করা মামলায় আসামিদের মধ্যে আছেন নর্দান ইউনিভার্সিটির চেয়ারম্যান আবু ইউসুফ আব্দুল্লাহ, রিয়াজুল আলম ও সেলিম মুন্সী। তদন্তের একপর্যায়ে এরতেজার নাম আসে।

মামলায় বলা হয়, নর্দান ইউনিভার্সিটির জন্য দক্ষিণখানে আশিয়ান সিটি প্রজেক্টে ৫ বিঘা জমি কেনার জন্য একটি চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী ৫০ কোটি টাকা দেয়ার কথা ছিল। প্রথম দফায় ৩০ কোটি টাকা দেয় নর্দান কর্তৃপক্ষ। বাকি টাকা পরিশোধ না করেই আশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলামের সই জাল করে জমির রেজিস্ট্রি করা হয়। এ সময় জমির মূল্য দেখানো হয় ৯ কোটি ৩৩ লাখ টাকা।

জালিয়াতির এ মামলায় আসামি আবু ইউসুফ আব্দুল্লাহ ও রিয়াজুল আলমকে এর আগে গ্রেপ্তার করে পিবিআই।

দৈনিক ভোরের পাতা সম্পাদনার পাশাপাশি বেশ কিছু সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত সিআইপি মর্যাদা পাওয়া এরতেজা হাসান।

তিনি ভোরের পাতা গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজের চেয়ারপারসন। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) ফ্ল্যাঞ্চাইজি রংপুর রাইডার্সের প্রেসিডেন্টও ছিলেন।

কাজী এরতেজা ব্যবসায়ীদের সংগঠন দ্য ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার্স অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) পরিচালক। তিনি ইরান-বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।

আরও পড়ুন:
ভোরের পাতার সম্পাদক এরতেজার জামিন
রিমান্ড শেষে কারাগারে ভোরের পাতা সম্পাদক এরতেজা
ভোরের পাতা সম্পাদক এরতেজা রিমান্ডে
ভোরের পাতা সম্পাদক এরতেজাকে রিমান্ডে চায় পিবিআই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Letters to two organizations asking for investigation into Islami Banks terrible November

ইসলামী ব্যাংকে ‘ভয়ংকর নভেম্বর’: তদন্ত চেয়ে দুই সংস্থাকে চিঠি

ইসলামী ব্যাংকে ‘ভয়ংকর নভেম্বর’: তদন্ত চেয়ে দুই সংস্থাকে চিঠি রাজধানীর দিলকুশায় ইসলামী ব্যাংক টাওয়ার। ছবি: সংগৃহীত
চিঠিতে বলা হয়, ‘বর্তমানে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলা করছে। এই ধরনের অসাধু লেনদেন আর্থিক ব্যবস্থাপনায় অধিকতর অস্থিরতা সৃষ্টি করতে পারে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের গ্রাহকসহ জনগণ ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার সমূহ আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।’

ইসলামী ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লোপাটের ঘটনায় তদন্ত চেয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের তিন আইনজীবীসহ পাঁচ গ্রাহক।

বৃহস্পতিবার দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এবং বাংলাদেশ ফিন্যানশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) বরাবর এ চিঠি পাঠানো হয়।

চিঠি দানকারী পাঁচজন হলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির, আব্দুল্লাহ সাদিক, মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ এবং দুই গ্রাহক যায়েদ বিন আমজাদ ও শায়খুল ইসলাম ইমরান।

গত ২৪ নভেম্বর ‘ইসলামী ব্যাংকে ভয়ংকর নভেম্বর’ শিরোনামের প্রতিবেদনে প্রথম আলো জানায়, চলতি বছর আটটি প্রতিষ্ঠানের নামে ইসলামী ব্যাংক থেকে প্রায় ৭ হাজার কোটি টাকা তুলে নেয়া হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ২ হাজার ৪৬০ কোটি টাকা তুলে নেয়া হয় ১ থেকে ১৭ নভেম্বরের মধ্যে। এ কারণে ব্যাংকটির কর্মকর্তারা চলতি মাসকে ‘ভয়ংকর নভেম্বর’ বলছেন।

সেই সঙ্গে ইংরেজি দৈনিক নিউ এজ পত্রিকার রিপোর্ট অনুযায়ী, এস আলম গ্রুপ একাই ৩০ হাজার কোটি টাকা নিয়মবহির্ভূতভাবে লেনদেন করেছে।

এসব ঋণের বিষয়ে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানানো হয়েছে চিঠিতে।

চিঠিতে বলা হয়, ‘আমরা নিম্ন স্বাক্ষরকারীরা ইসলামী ব্যাংকের নিয়মিত গ্রাহক। ইসলামী ব্যাংকের বিভিন্ন শাখায় আমাদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। আমরা সাধ্যমতো ইসলামী ব্যাংকের সঙ্গে লেনদেন করি। সূত্রে উল্লেখিত পত্রিকার রিপোর্টে ইসলামী ব্যাংকের নিয়মবহির্ভূত লেনদেন প্রতিভাত হয়েছে। জামানত ছাড়া ঋণপ্রদান, নামসর্বস্ব কোম্পানিকে ঋণ প্রদানের সুনির্দিষ্ট অভিযোগ উঠে এসেছে। ব্যাংকের কর্মচারীসহ প্রত্যক্ষদর্শী, ব্যবসায়ী ও সুধীজনের ভাষ্য মতে, রিপোর্টে উল্লেখিত সংখ্যার চেয়ে প্রকৃত অসাধু লেনদেনের পরিমাণ আরও অনেক গুণ বেশি।’

চিঠিতে আরও বলা হয়, ‘স্বীকৃত মতে, বর্তমানে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলা করছে। এই ধরনের অসাধু লেনদেন আর্থিক ব্যবস্থাপনায় অধিকতর অস্থিরতা সৃষ্টি করতে পারে। সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের গ্রাহকসহ জনগণ ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার সমূহ আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এমনকি দেশের সর্বোচ্চ আদালত অতীতের ঘটনাগুলো নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছে।’

বিষয়গুলো আমলে নিয়ে অনুসন্ধান করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে চিঠিতে। একই সঙ্গে তদন্ত সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে আইনগত দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ নেয়ারও অনুরোধ করা হয়।

আরও পড়ুন:
‘শক্তিশালী ব্যাংকের’ স্বীকৃতি পেল ইসলামী ব্যাংক
ইসলামী ব্যাংককে নিষেধাজ্ঞা ৮ প্রতিষ্ঠানের ঋণে

মন্তব্য

p
উপরে