× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
After the rescue Maryams mother is in the custody of the asylum seekers
hear-news
player
google_news print-icon

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে

উদ্ধারের-পর-নিশ্চুপ-মরিয়মের-মা-আশ্রয়দাতারা-হেফাজতে
ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে রহিমা বেগমকে উদ্ধার করে রাতে খুলনার দৌলতপুরে নেয় পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
কেএমপির উপকমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘রহিমা বেগম নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে তার সকল ডিজিটাল ডিভাইস বন্ধ করে রেখেছিল। তাকে আমরা কোনোভাবেই ট্র্যাক করতে পারছিলাম না। গোয়েন্দা তৎপরতার মাধ্যমে যে বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে, সেই বাড়ির দুই নারীর সঙ্গে তিনি বসে গল্প করছিলেন, তবে আমাদের অফিসাররা তাকে উদ্ধারের পর কোনো কথার জবাব দেননি। সেই থেকে তিনি নির্বাক রয়েছেন।’

ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে উদ্ধারের পর খুলনার দৌলতপুরে নেয়া পর্যন্ত রহিমা বেগম মুখ খোলেননি বলে জানিয়েছে পুলিশ।

প্রায় এক মাস ধরে দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা থেকে মা নিখোঁজের অভিযোগ করে মরিয়ম মান্নানের পোস্টগুলো ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার মধ্যে শনিবার রাতে রহিমাকে উদ্ধার করে পুলিশ।

বোয়ালমারীর সৈয়দপুর গ্রামের একটি ঘর থেকে রাত সাড়ে ১০টার দিকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় পঞ্চাশোর্ধ্ব নারীকে। সেখান থেকে পৌনে ১১টার দিকে খুলনার উদ্দেশে রওনা হয় পুলিশ। রাত ২টা ১০ মিনিটে মরিয়মের মাকে দৌলতপুর থানায় নেয়া হয়।

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে
ফরিদপুর থেকে উদ্ধার করে খুলনার দৌলতপুরে নেয়া হয় রহিমাকে। ছবি: নিউজবাংলা

রহিমাকে যে বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে, সেখান থেকে তিনজনকে আটক করে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। তারা হলেন কুদ্দুস মোল্লার স্ত্রী, তার ছেলে এবং কুদ্দুসের ভাইয়ের স্ত্রী।

ব্রিফিংয়ে কী জানাল পুলিশ

ফেসবুকে ব্যাপক আলোচনায় আসা মরিয়ম মান্নানের মাকে উদ্ধার নিয়ে শনিবার গভীর রাতে খুলনার দৌলতপুর থানায় ব্রিফিং করেন মহানগর পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন।

তিনি বলেন, ‘গোয়েন্দা রিপোর্টের ভিত্তিতে আমরা নিশ্চিত হয়েছিলাম, রহিমা বেগম ফরিদপুরে আছেন। পরে খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশ (কেএমপি) কমিশনারের নির্দেশে আমাদের দক্ষ কিছু কর্মকর্তা সেখানে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে।’

রহিমার অবস্থান শনাক্ত করা যাচ্ছিল না জানিয়ে পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘রহিমা বেগম নিখোঁজ হওয়ার পর থেকে তার সকল ডিজিটাল ডিভাইস বন্ধ করে রেখেছিল। তাকে আমরা কোনোভাবেই ট্র্যাক করতে পারছিলাম না।

‘গোয়েন্দা তৎপরতার মাধ্যমে যে বাড়ি থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে, সেই বাড়ির দুই নারীর সঙ্গে তিনি বসে গল্প করছিলেন, তবে আমাদের অফিসাররা তাকে উদ্ধারের পর কোনো কথার জবাব দেননি। সেই থেকে তিনি নির্বাক রয়েছেন।’

পুলিশের ভাষ্য, ফরিদপুরের সেই বাড়ি আটক কুদ্দুস মোল্লার, যিনি রহিমাদের খুলনার বাসায় ভাড়া থাকতেন। খুলনা শহরে পাটকলের শ্রমিক ছিলেন কুদ্দুস।

পুলিশ আরও জানায়, করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে রহিমার ছেলে মিরাজ একবার কুদ্দুসের বোয়ালমারীর বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। রহিমাদের সঙ্গে কুদ্দুসের তেমন সম্পর্ক ছিল না।

কুদ্দুসের বাড়ি থেকে তিনজনকে আটকের কথা জানিয়ে কেএমপির কর্মকর্তা মোল্লা জাহাঙ্গীর বলেন, ‘ওই বাড়ি থেকে আমরা তিনজনকে হেফাজতে নিয়ে এসেছি। তারা হলেন কুদ্দুস মোল্লার স্ত্রী, ছেলে ও তার (কুদ্দুস) ভাইয়ের স্ত্রী। এই তিনজনের কাছ থেকে জানতে পেরেছি, গত ১৭ আগস্ট ওই বাড়িতে রহিমা বেগম গিয়েছিলেন। প্রথমে তারা রহিমাকে চিনতে পারেনি। পরে একপর্যায়ে তাকে চিনতে পারে।

‘তখন তাকে সাবেক বাড়িওয়ালা হিসেবে বেশ সেবাযত্ন করেন (কুদ্দুস ও তার বাড়ির লোকজন)। পরবর্তী সময়ে তাদের কাছে (রহিমা) জানান, এর আগে তিনি গোপালগঞ্জের মকছেদপুর ও চট্টগ্রামে ছিলেন।’

উদ্ধার হওয়া রহিমাকে শুরুতে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হবে। নিখোঁজ রহস্য উদঘাটনে সেখান থেকে তাকে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) হস্তান্তর করা হবে।

রহিমার প্রতিবেশীর অভিযোগ

রহিমা বেগমকে অক্ষত অবস্থায় থানায় আনার পরে মহেশ্বরপাশা থেকে ছুটে আসেন স্থানীয় ব্যক্তিরা।

প্রতিবেশী রবিউল ইসলাম অভিযোগ করেন, ‘মরিয়মের বাবা মান্নান হুজুরের তিনটি বিবাহ ছিল। রহিমা বেগমদের পক্ষ ও আগের একটি পক্ষ স্বামীর মৃত্যুর সূত্রে একই জমি পেয়েছিলেন, তবে রহিমা বেগম অন্য পক্ষকে জমি ভোগ দখল করতে দিতেন না। তাই তারা ক্ষিপ্ত হয়ে নিজেদের অংশের জমি প্রতিবেশীদের কাছে বিক্রি করে দেন। তারপর থেকে কখনোই প্রতিবেশীরা সেই জমি দখলে নিতে পারেনি।’

তিনি বলেন, ‘জমি দখল করতে গেলে তারাই (রহিমা বেগমরা) মারামারি শুরু করে। থানা পুলিশ বা আদালত পর্যন্ত গড়ায়। এক বছর আগে এ নিয়ে স্থানীয় কয়েকজনের সঙ্গে তাদের মারামারি হয়েছিল। সেই থেকে স্থানীয় মানুষ তাদের সঙ্গে মিশতে চায় না।

‘ওই দখলে রাখতে তারাই নাটক সাজিয়েছে। আমরা আগেও থানা পুলিশকে জানিয়েছিলাম। কারণ অন্যদের কেনা জমি তারা দখল করে রাখলেও আদালত একদিন রহিমা বেগমের বিপক্ষে রায় দেবে। সেদিন জমি ছেড়ে দিতে হবে। শুধু জমি দখলছাড়া না করতে তারা এই নাটক সাজিয়েছেন।’

রবিউল আরও বলেন, ‘স্থানীয় মানুষ হিসেবে আমরা যতদূর জানি, রহিমা বেগমকে তার মেয়েরা তেমন ভালোবাসত না। মেয়েরা মায়ের কথাও তেমন শুনত না। তার মা মেয়েদের বিয়ের জন্য বেল্লাল হাওলাদার ওরফে বেল্লাল ঘটককে নিয়মিত বাড়িতে ডাকতেন।

‘মেয়েদের ওপর বিরক্ত হয়ে একপর্যায়ে তিনি সেই বেল্লাল ঘটককেই বিয়ে করেন। মেয়েরা তাকে দেখত না বলেই তিনি নতুন করে আরেকটি বিয়ে করেন।’

অপহরণের জিডি, মামলা ও সংবাদ সম্মেলন

গত ২৭ আগস্ট রাত সাড়ে ১০টার দিকে দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশার বণিকপাড়া থেকে রহিমা নিখোঁজ হন বলে অভিযোগ করে তার পরিবার। রাত সোয়া ২টার দৌলতপুর থানায় অপহরণের অভিযোগে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন রহিমার ছেলে মিরাজ আল সাদী।

সে জিডি থেকে জানা যায়, নিখোঁজের সময় রহিমার দ্বিতীয় স্বামী বেল্লাল হাওলাদার বাড়িতে ছিলেন। পানি আনতে বাসা থেকে নিচে নেমেছিলেন রহিমা। দীর্ঘ সময় পরও তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।

মাকে পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে ২৮ আগস্টে দৌলতপুর থানায় বাদী হয়ে মামলা করেন রহিমার মেয়ে আদুরী।

রহিমা নিখোঁজ হয়েছেন জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে সোচ্চার হন মরিয়ম মান্নানসহ তার অন্য মেয়েরা।

গত ১ সেপ্টেম্বর খুলনায় সংবাদ সম্মেলন করেন রহিমার বাড়ির লোকজন। সে সময় জানানো হয়, রহিমার সঙ্গে জমি নিয়ে স্থানীয়দের মামলা চলছে। রহিমার করা সেই মামলায় আসামিরা হলেন প্রতিবেশী মঈন উদ্দিন, গোলাম কিবরিয়া, রফিকুল ইসলাম পলাশ, মোহাম্মাদ জুয়েল ও হেলাল শরীফ।

আদালত ১৪ সেপ্টেম্বর মামলাটি পিবিআইতে পাঠানোর আদেশ দেন। এরপর ১৭ সেপ্টেম্বর নথিপত্র বুঝে নেয় পিবিআই।

দৌলতপুরে যে বাড়ি থেকে রহিমা নিখোঁজ হয়েছেন সেখানে শুক্রবার গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির দ্বিতীয় তলা (যেখানে রহিমা থাকতেন) তালাবদ্ধ। নিচ তলায় ভাড়াটিয়ারা রয়েছেন।

ভাড়াটিয়ারা জানান, ওই বাড়িতে রহিমা ও তার স্বামী বেল্লাল নিয়মিত থাকতেন না।

ভাড়াটিয়া আকলিমা বেগম বলেন, ‘প্রতিবেশীদের সঙ্গে রহিমার জমি সংক্রান্ত বিরোধ হয়। তারপর থেকে রহিমা ও তার স্বামী খুলনা শহরের দিকে কোথাও ভাড়া থাকতেন। দেড় থেকে ২ মাস পরপর একবার এই বাড়িতে আসতেন। এক-দুই দিন থেকে আবারও চলে যেতেন।’

তিনি বলেন, ‘নিখোঁজের আগের দিন তিনি এখানে এসেছিলেন। রাতে বাড়ির দ্বিতীয় তলায় তার স্বামীর সঙ্গে ছিলেন।

‘পরে রাত ১১টার দিকে শুনি, তাকে পাওয়া যাচ্ছে না। তিনি দ্বিতীয় তলা থেকে একটি বালতি নিয়ে নিচে এসেছিলেন পানি নিতে। পরে তার স্বামী কিছু দূরে এগিয়ে গিয়ে জানান, রহিমার এক জোড়া স্যান্ডেল ও ওড়না পাওয়া গেছে।’

অন্য নারীকে মা দাবি

২২ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহে ১২ দিন আগে উদ্ধার হওয়া এক নারীর মরদেহকে রহিমা বেগমের বলে দাবি করেন তার মেয়েরা। ওই রাত পৌনে ১২টার দিকে মরিয়ম মান্নান ফেসবুক এক পোস্টে বলেন, ‘আমার মায়ের লাশ পেয়েছি আমি এইমাত্র।’

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে

২৩ সেপ্টেম্বর সকালে রহিমার মেয়ে মরিয়ম মান্নান, মাহফুজা আক্তার ও আদুরী আক্তার ফুলপুর থানায় পৌঁছান।

ওই সময় পুলিশ অজ্ঞাত পরিচয় ওই নারীর ছবিসহ পরনে থাকা আলামতগুলো মেয়েদের দেখান। মরিয়ম মান্নান ছবিসহ সালোয়ার-কামিজ দেখে দাবি করেন, এটিই তার মায়ের মরদেহ।

মরিয়ম মান্নান সে সময় সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘২৭ দিন ধরে আমার মা নিখোঁজ। আমরা প্রতিনিয়ত মাকে খুঁজছি। এরই মধ্যে গত ১০ সেপ্টেম্বর ফুলপুর থানায় অজ্ঞাতপরিচয় নারীর মরদেহ উদ্ধারের খবর পেয়ে আমরা এখানে এসেছি। সালোয়ার-কামিজ ছাড়াও ছবিতে আমার মায়ের শরীর, কপাল ও হাত দেখে মনে হয়েছে, এটাই আমার মা।’

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে

সে সময় পুলিশের পক্ষ থেকে মরিয়মকে জানানো হয়, ডিএনএ টেস্ট ছাড়া মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত করা সম্ভব নয়।

ফুলপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুল মোতালেব চৌধুরী শুক্রবার নিউজবাংলাকে বলেছিলেন, ‘মরিয়মের মায়ের বয়স ৫৫ বছর। আমরা যে গলিত মরদেহটি উদ্ধার করেছি, তার আনুমানিক বয়স ২৮ থেকে ৩২ বছর মনে হচ্ছে। এসব দিক বিবেচনায় মরদেহটি তার মায়ের নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না।’

আরও পড়ুন: বস্তাবন্দি মরদেহ মরিয়ম মান্নানের মায়ের কি না সংশয়

ফুলপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহ আল মামুন নিউজবাংলাকে বলেছিলেন, ‘গত ১০ সেপ্টেম্বর বেলা ১১টার দিকে উপজেলার বওলা ইউনিয়নের পূর্বপাড়া গ্রাম থেকে বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। মরদেহটির পরনে তখন গোলাপি রঙের সালোয়ার, গায়ে সুতির ছাপা গোলাপি, কালো-বেগুনি ও কমলা রঙের কামিজ এবং গলায় গোলাপি রঙের ওড়না প্যাঁচানো ছিল।

‘পরে মরদেহের পরিচয় শনাক্ত করতে না পেরে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে ১২ সেপ্টেম্বর দাফন করা হয়। ডিএনএ টেস্ট করতে প্রয়োজনীয় আলামতও সংরক্ষণ করা হয়েছে।’

ওসি বলেন, ‘মরিয়ম মান্নান ওই মরদেহটি তার মা রহিমার দাবি করলেও নিশ্চিতভাবে প্রমাণ করতে পারেননি। চূড়ান্তভাবে মরদেহ শনাক্তে মরিয়মের ডিএনএ টেস্ট করা প্রয়োজন।’

এখন কী বলছেন মরিয়ম মান্নান

মা রহিমা বেগমকে উদ্ধার নিয়ে ফেসবুকে কয়েকটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন মরিয়ম মান্নান। শনিবার রাত ১১টা ৩৭ মিনিটে দেয়া স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, ‘আলহামদুলিল্লাহ! আলহামদুলিল্লাহ! এখন আমার থেকে খুশি আর কেউ নেই! খুলনার মহেশ্বরপাশায় নিখোঁজ আমার মাকে অক্ষত অবস্থায় ফরিদপুর থেকে উদ্ধার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

‘এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তা দৌলতপুর থানার এসআই লুৎফুল হায়দার। কেএমপি পুলিশের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বিষয়টি আমাকে নিশ্চিত করেছেন।’

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে

রোববার ভোর ৪টা ২৮ মিনিটে দেয়া আরেক স্ট্যাটাসে মরিয়ম তাকে ভুল না বোঝার আকুতি জানিয়েছেন। তিনি লেখেন, ‘সন্তান মাকে খুঁজবে খুব স্বাভাবিক। আপনার মা হারিয়ে গেলে আপনিও খুঁজতেন। ফুলপুরের লা* পর্যন্ত গিয়েছি মাকেই খুঁজতে। ফুলপুর থানার ওসিকে আমি তাদের দেয়া একটা বিজ্ঞাপনের মাধ্যমেই কল দেই। ওখানে যাই, ডিএনএ টেস্টের জন্য আবেদন করি।

‘আমার মাকে আমি খুঁজেছি। সব জায়গায় যেয়ে একটা কথাই বলেছি, আমার মাকে চাই। মা যদি আত্নগো** করেন, তাকে এনে শাস্তি দিন। তাও আমার মা আমার চোখের সামনে এনে দিন দয়া করে।’

উদ্ধারের পর নিশ্চুপ মরিয়মের মা, আশ্রয়দাতারা হেফাজতে

তিনি বলেন, ‘আজকে মাকে পাওয়া গিয়েছে। আমি মায়ের উদ্দেশ্যে যাচ্ছি। মায়ের সঙ্গে এখনও দেখা হয়নি, কথাও হয়নি। মায়ের কোনো ভিডিও অথবা অডিও পাইনি যেখানে মা বলেছেন তিনি আত্মগোপন করেছেন।

‘সকলের কাছে কাছে গিয়েছি মাকে খুঁজে পেতে। যাদের কাছে গিয়েছি তারা জানেন কী চেয়েছি আমি। মাকে চাওয়া ছাড়া আর কিছু চাওয়া আমার ছিল নাহ; এখনও নেই। দয়া করে আমার মাকে আমার মায়ের সঙ্গে আমার দেখা না হওয়া পর্যন্ত আমাকে ভুল বুঝবেন না। আমি মাকে খুঁজেছি; সন্তান হিসেবে আমার দায়িত্ব তাকে খোঁজা।’

মরিয়ম লেখেন, ‘মা এই তিরিশ দিন কোথায় ছিল, কীভাবে ছিল, সেটা আপনাদের মতো আমারও প্রশ্ন। আমার মায়ের সঙ্গে আমাকে কথা বলতে দিন। আমার মায়ের কাছে পৌঁছানো পর্যন্ত আমাকে সহযোগিতা করুন। মা যদি আত্মগোপন করেও থাকেন, তবুও তাকে খোঁজার দায়িত্ব আমার। আমি মাকে খুঁজতেছি বলে আমাকে বলা হচ্ছে মায়ের আত্মগোপনে আমি জড়িত? তাহলে আমার কী করা উচিত ছিল? যখন শুনেছি আমার মা নিখোঁজ, তখন চুপ করে বসে থাকা উচিত ছিল? যারা প্রথম দিন থেকে বলছিলেন মা আত্মগোপন করেছেন তাদের কথা শুনে মাকে আর খুঁজতাম না? মাকে খুঁজেছি বলে আমাকে দোষী করা হবে?’

‘আপনারা আমাকে যে যাই দোষ দিন না কেন, প্রথম দিন থেকে আমি ছুটতেছি মায়ের জন্য। আজকে পেয়েও গিয়েছি। বারবার বলেছি মা আত্মগোপন করলে সামনে আনুন, শাস্তি দিন। আমার কলিজা জুড়াক। আমার কলিজা শান্ত হইছে। মায়ের চেহারাটা দেখেই আমার শান্তি। আপনারা যে যাই বলেন, এখন আমার মা আমার সামনে।’

মাকে পেতে ‘সহায়তা করায়’ অনেককে ধন্যবাদ জানিয়ে মরিয়ম মান্নান লেখেন, ‘মাকে খুঁজে পাওয়ার লড়াই ছিল আমার। আপনারা সহোযোগিতা করেছেন। আপনাদের সহযোগিতায় আজকে আমার মাকে খুঁজে পেয়েছি আলহামদুলিল্লাহ! প্রথম দিনের মতোই আজকেও আমার একটাই চাওয়া, মাকে ছাড়া কিছুই চাই না। মাকে নিয়ে এই খুলনা শহর ছেড়ে দিব, মাকে নিয়ে দূরে চলে যাব। মাকে চাওয়া ছাড়া কিছুই চাওয়ার নাই।

‘যে জায়গা নিয়ে মামলা, সেই জায়গাও চাই না। শুধু মাকে চাই। মাকে আমার কাছে ন পাওয়া পর্যন্ত আপনাদের সকলের সহোযোগিতা কামনা করছি এবং আমি জানি একজন মাকে তার সন্তানদের কাছে ফিরিয়ে দিতে পৃথিবীর সকল মানুষ আমার পাশে থাকবেন।’

তিনি আরও লেখেন, ‘আমি খুশি, এক মুহূর্তের জন্যও বিচলিত নই। মাকে খুঁজতে যেয়ে যদি আমাকে দোষী হতে হয়, আমি সেই দোষ মাথা পেতে নেয়ার শক্তি এবং সাহস রাখি, ইনশাআল্লাহ।’

আরও পড়ুন:
মায়ের আত্মগোপনে মরিয়ম মান্নানও জড়িত!
মরিয়ম মান্নানের মাকে উদ্ধার, ছিলেন আত্মগোপনে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The High Court warned against publishing the courts statement

আদালতের বক্তব্য প্রকাশে সতর্ক করল হাইকোর্ট

আদালতের বক্তব্য প্রকাশে সতর্ক করল হাইকোর্ট ফাইল ছবি
আদালত বলেছে, সাংবাদিকদের আদালত সংক্রান্ত প্রতিবেদন সম্পূর্ণ সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠভাবে তৈরি করতে হবে। আদালতের কার্যক্রম ও কথোপকথন নিয়ে প্রতিবেদন পুরোপুরি সম্ভব না হলেও যতটা সম্ভব কাছাকাছি হতে হবে।

মামলার শুনানিকালে বিচারকের বক্তব্য নিয়ে গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে বলেছে হাইকোর্ট।

বুধবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ কথা বলেছে।

আদালত বলেছে, সাংবাদিকদের আদালত সংক্রান্ত প্রতিবেদন সম্পূর্ণ সঠিক ও বস্তুনিষ্ঠভাবে তৈরি করতে হবে। আদালতের কার্যক্রম ও কথোপকথন নিয়ে প্রতিবেদন পুরোপুরি সম্ভব না হলেও যতটা সম্ভব কাছাকাছি হতে হবে।

বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারক বলেন, ‘যে কথা আমরা বলিনি, সে কথা লেখা উচিত নয়।‘

এখন থেকে আদালতের বক্তব্যের রেকর্ড থাকবে বলেও জানায় আদালত।

সংশ্লিষ্ট কোর্টের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সোমবার হাইকোর্টের মন্তব্য নিয়ে কয়েকটি অনলাইনে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়, যেখানে কিছু শব্দের ব্যাপারে আদালত আপত্তি জানিয়েছেন। জনমনে বিভ্রান্তি তৈরি হয় এমন কথা যেটা আদালত বলে না সেটা যাতে না যায়।

‘আদালতের বক্তব্য লেখার ক্ষেত্রে প্রয়োজনে অ্যাটর্নি জেনারেল বা সংশ্লিষ্ট কোর্টের ডিএজি বা অপরপক্ষের আইনজীবীর কাছ থেকে বিষয়টি পরিষ্কার করে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন আদালত।’

আরও পড়ুন:
ইসলামী ব্যাংকের ‘অর্থ লোপাট’ নিয়ে রিটের পরামর্শ হাইকোর্টের
চেক ডিজঅনার মামলা নিয়ে হাইকোর্টের রায় স্থগিত হয়নি
ব্যাংক কেলেঙ্কারি নিয়ে হাইকোর্ট, আমরা শুধু চেয়ে দেখব?
বড় ঋণখেলাপিরা কি বিচারের ঊর্ধ্বে, প্রশ্ন হাইকোর্টের
ওসি মোয়াজ্জেমের হাইকোর্টে জামিন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
5 arrested along with Bada A League leaders to arrest the accused in the rape case

ধর্ষণ মামলার আসামি ধরতে পুলিশকে বাধা, আ.লীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৫

ধর্ষণ মামলার আসামি ধরতে পুলিশকে বাধা, আ.লীগ নেতাসহ গ্রেপ্তার ৫
ওসি বলেন, ‘ওই তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালায় পুলিশ। সেসময় অভিযুক্তরা ও তাদের পরিবারের অন্য সদস্যরা পুলিশকে বাধা দেয়। পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হয়।’

গাজীপুরের টঙ্গীতে পোশাককর্মীকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণের অভিযোগে দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আসামি গ্রেপ্তারে গিয়ে বাধা ও হামলার শিকার হওয়ায় আওয়ামী লীগ নেতাসহ আরও ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তার আওয়ামী লীগ নেতার নাম লুৎফর রহমান কালু। তিনি টঙ্গী থানা আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক। পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে তাকে ও তার দুই স্ত্রী সোনিয়া আক্তার সনি ও ফাতেমা বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আর ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বাবুল হোসেন বাবু ও আসাদুজ্জামান শাওন নামে দুজনকে।

টঙ্গী পূর্ব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আশরাফুল ইসলাম এসব নিশ্চিত করেছেন।

পোশাককর্মীর বরাতে তিনি জানান, শাওনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। তাদের মধ্যে বিভিন্ন সময় শারীরিক সম্পর্কও হয়েছে। সবশেষ গত সোমবার গভীর রাতে শাওন মেয়েটিকে নিজের এলাকায় ডেকে নেন। সেখানে পৌঁছালে স্থানীয় মরকুন কবরস্থানে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন শাওনের দুই বন্ধু বাবু ও রিপন। পরদিন ৯৯৯ এ কল পেয়ে পুলিশ গিয়ে মেয়েটিকে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

ওসি বলেন, ‘ওই তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চালায় পুলিশ। সেসময় অভিযুক্তরা ও তাদের পরিবারের অন্য সদস্যরা পুলিশকে বাধা দেয়। পুলিশের ওপর ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হয়।

‘পরে ঘটনাস্থল থেকে ধর্ষণে অভিযুক্ত দুই যুবকসহ ৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় এসআই নজরুল ইসলাম ১২ জনের নামসহ অজ্ঞাতপরিচয় ১০ থেকে ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। আর ধর্ষণের ঘটনায় ভিকটিমের করা মামলায় ৩ জনকে আসামি করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
শিশুকে ধর্ষণচেষ্টায় ১০ বছরের কারাদণ্ড
আওয়ামী লীগ উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য হচ্ছেন মতিয়র রহমান
বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে পুড়িয়ে হত্যায় জড়িতকে খুঁজছে পুলিশ
সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড
বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The young mans wrist was broken by the train

যুবকের কবজি বিচ্ছিন্ন ট্রেনের ধাক্কায়

যুবকের কবজি বিচ্ছিন্ন ট্রেনের ধাক্কায় প্রতীকী ছবি
‘কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় রেললাইন পার হতে গিয়ে সজিব দুর্ঘটনায় পড়েন। ট্রেনের ধাক্কায় তার ডান হাতের কবজি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।’

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে ট্রেনের ধাক্কায় মোহাম্মদ সজিব নামে এক যুবকের হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

বুধবার বেলা দুইটার দিকে কারওয়ান বাজার রেলগেটের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহত অবস্থায় সজিবকে নেয়া হয় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে।

তাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসা যুবক কামাল হোসেন বলেন, ‘কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা ট্রেন বিমানবন্দর স্টেশনের দিকে যাচ্ছিল। এ সময় রেললাইন পার হতে গিয়ে সজিব দুর্ঘটনায় পড়েন। ট্রেনের ধাক্কায় মাথাসহ শরীরের অন্য জায়গায় জখমের পাশপাশি তার ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। দ্রুত তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়।’

তেজগাঁও থানার একজন উপ-পরিদর্শক (এসআই) সন্ধ্যায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে সজিবের খোঁজখবর নেন। হাসপাতালের ১০১ নম্বর অর্থোপেডিক ওয়ার্ডে ভর্তি রেখে সজিবের চিকিৎসা চলছে। ২২ বছর বয়সী এ যুবকের শারীরিক অবস্থা অনেকটা শঙ্কামুক্ত বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ পরিদর্শক মো. বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘ট্রেনের ধাক্কায় কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া যুবককে হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। তার বিস্তারিত পরিচয় জানা যায়নি।’

আরও পড়ুন:
ট্রেনের ধাক্কায় এক যুবক নিহত
মহাখালীতে ট্রেনের ধাক্কায় যুবক নিহত
ট্রেনের ধাক্কায় দুমড়েমুচড়ে গেল মাইক্রোবাস, বেঁচে যায় ১৬ শিশুশিক্ষার্থী
ট্রেনে কাটা পড়ে নারীর মৃত্যু
হেডফোন কানে দিয়ে রেললাইন পার হতে গিয়ে যুবকের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
10 years imprisonment for attempted rape of a child

শিশুকে ধর্ষণচেষ্টায় ১০ বছরের কারাদণ্ড

শিশুকে ধর্ষণচেষ্টায় ১০ বছরের কারাদণ্ড
২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল বিকেলে কাউখালী পোয়াপাড়ায় বাজার থেকে শিশুটিকে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে আসামি। ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ক্যামেরায় সে দৃশ্য রেকর্ড হয়।

রাঙ্গামাটির কাউখালী উপজেলায় স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার মামলায় আসামিকে ১০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জেলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে বুধবার দুপুরে এই রায় দেন বিচারক এ.ই.এম ইসমাইল হোসেন। কারাদণ্ডের পাশাপাশি আসামি গোপাল কৃঞ্চ নাথকে ৫ লাখ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

গোপালের বাড়ি কাউখালীর ঘাগড়া ইউনিয়নে।

এসব নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সাইফুল ইসলাম অভি।

তিনি জানান, ২০১৯ সালের ২১ এপ্রিল বিকেলে কাউখালী পোয়াপাড়ায় বাজার থেকে শিশুটিকে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে আসামি। ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ক্যামেরায় সে দৃশ্য রেকর্ড হয়। খবর পেয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে স্বজনরা। সে রাতেই শিশুর বাবা কাউখালী থানায় মামলা করেন।

এসব অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক আসামিকে কারাদণ্ড দিয়েছেন বলে জানান আইনজীবী।

আরও পড়ুন:
রিসোর্টে যুবক হত্যা, ২ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
দুই যুগ আগের হত্যা মামলায় ২ আসামির যাবজ্জীবন
অন্তঃসত্ত্বাকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যা, ৫ জনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
কৃষক উজ্জ্বল হত্যায় ১০ জনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
GM Quader lost the ability to run the team again

দল চালানোর ক্ষমতা ফের হারালেন জি এম কাদের 

দল চালানোর ক্ষমতা ফের হারালেন জি এম কাদের  জি এম কাদেরের দল চালানোর ক্ষমতা ফের স্থগিত করেছে আদালত। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
জাপা থেকে বহিষ্কৃত নেতা জিয়াউল হক মৃধা গত ৪ অক্টোবর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে জি এম কাদেরের দায়িত্বপালনে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা করেন। এরপর বিচারিক আদালত কাদেরের দলীয় যাবতীয় কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞার অস্থায়ী আদেশ দেয়। তবে হাইকোর্ট মঙ্গলবার সে আদেশ স্থগিত করে। হাইকোর্টের সেই আদেশ আবার স্থগিত করেছে চেম্বার জজ আদালত।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে বিভিন্ন দলীয় সিদ্ধান্ত নিতে জি এম কাদেরের ওপর বিচারিক আদালতের নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করেছিল হাইকোর্ট। তবে হাইকোর্টের সেই আদেশ বুধবার চেম্বার জজ আদালত স্থগিত করে দিয়েছে।

বিষয়টি শুনানির জন্য আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চেও পাঠিয়েছে চেম্বার আদালত। আগামী সোমবার এ শুনানির আগপর্যন্ত হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত থাকবে। ফলে আপাতত আবার দলের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা হারালেন জিএম কাদের।

চেম্বার জজ বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম এ আদেশ দেন।

আদালতে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করার আবেদনের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট সাঈদ আহমেদ রাজা। জি এম কাদেরের পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম।

জাপা থেকে বহিষ্কৃত নেতা সাবেক এমপি জিয়াউল হক মৃধা গত ৪ অক্টোবর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে জি এম কাদেরের দায়িত্বপালনে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা করেন। তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৩১ অক্টোবর ঢাকার প্রথম যুগ্ম জেলা জজ আদালত জি এম কাদেরের দলীয় যাবতীয় কার্যক্রমে নিষেধাজ্ঞার অস্থায়ী আদেশ দেয়।

তবে হাইকোর্টের বিচারপতি শেখ আবদুল আউয়ালের একক বেঞ্চ মঙ্গলবার বিচারিক আদালতের আদেশ স্থগিত করে। এর ফলে দলে চেয়ারম্যানের কর্তৃত্ব ফিরে পেয়েছিলেন কাদের।

মামলায় বলা হয়, জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ২০১৯ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর মারা যান। এরপর বিবাদী জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে হাইকোর্ট বিভাগে একটি রিট মামলা বিচারাধীন থাকার পরও জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ওই বছর ২৮ ডিসেম্বর কাউন্সিল করে নিজেকে তিনি চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেন।

জিয়াউল হক মৃধার মামলায় বলা হয়, জি এম কাদের গত ৫ মার্চ গাজীপুর মহানগর কমিটির উপদেষ্টা আতাউর রহমান সরকার, সাংগঠনিক সম্পাদক সবুর শিকদার, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ডা. মো. আজিজকে বহিষ্কার করেন। এ ছাড়া ১৪ সেপ্টেম্বর মসিউর রহমান রাঙ্গাকে জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।

মামলায় বলা হয়, ১৭ সেপ্টেম্বর অ্যাডভোকেট জিয়াউল হক মৃধাকেও জাতীয় পার্টি থেকে বহিষ্কার করা হয়, যা সম্পূর্ণ অবৈধ।

আরও পড়ুন:
১০ ডিসেম্বর কী হতে যাচ্ছে ঢাকায়?
বিএনপির সঙ্গে জোটের প্রশ্নই আসে না
মহিলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে চুমকি ও শিলা
হঠাৎ আলোচনায় এসেই অগোচরে সোহেল তাজ
‘জি এম কাদেরের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death sentence for the accused in the rape and murder of a three and a half year old child

সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড

সাড়ে তিন বছরের শিশুকে ধর্ষণ-হত্যায় আসামির মৃত্যুদণ্ড প্রতীকী ছবি
রায়ে বিচারক বলেন, শিশুরা যদি তাদের আশপাশের প্রতিবেশীদের কাছে নিরাপদ না থাকে তা সমাজের জন্য অশনিসংকেত। আসামি একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে নিজের পাশবিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে ভিকটিমের জীবনে কালিমা লেপন করেছে এবং তার জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে।

রাজধানীর বাড্ডায় সাড়ে তিন বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে আসামি শিপনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭-এর বিচারক সাবেরা সুলতানা খানম বুধবার আসামির উপস্থিতিতে এই রায় দেন।

আসামিকে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ২০ হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।

রায়ে বিচারক বলেন, শিশুরা যদি তাদের আশপাশের প্রতিবেশীদের কাছে নিরাপদ না থাকে তা সমাজের জন্য অশনিসংকেত। আসামি একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি হিসেবে নিজের পাশবিক স্বার্থ চরিতার্থ করতে ভিকটিমের জীবনে কালিমা লেপন করেছে এবং তার জীবন প্রদীপ নিভিয়ে দিয়েছে। এই অপরাধের জন্য তার সর্বোচ্চ শাস্তি প্রাপ্য।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবির উপপরিদর্শক রাশেদুল আলম ২০১৯ সালের ২৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১৭ সালের ৩০ জুলাই আসামি শিপন নিজের বাসায় আসেন। ভুক্তভোগী শিশুকে বাসার সামনে দেখে তিনি শিশুটিকে ভাত খাওয়ান। এরপর ধর্ষণ করেন। শিশুটি চিৎকার করলে তার মুখ ও গলা চেপে ধরে রাখেন। এতে সে নিস্তেজ হয়ে পড়লে আসামি তাকে বাথরুমে ফেলে রেখে চলে যান।

ঘটনার পরদিন ৩১ জুলাই শিশুটির বাবা মেহেদী হাসান বাড্ডা থানায় মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
বাকপ্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের পর পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ
আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত
জমি লিখে না দেয়ায় স্বামীকে হত্যার অভিযোগ
যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
স্বপন হত্যা মামলায় ব্যবসায়ীর মৃত্যুদণ্ড, বান্ধবীর যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fragmented parts of the body of the verse are recovered

আয়াতের দেহের খণ্ডিত অংশ উদ্ধার

আয়াতের দেহের খণ্ডিত অংশ উদ্ধার শিশু আয়াত ও আসামি আবির আলী। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
দ্বিতীয় দফায় রিমান্ডের প্রথম দিন আয়াতের খণ্ডিত দেহের খোঁজে সাগরপাড় এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তায় একটি জলাশয় পানিশূন্য করা হচ্ছে বলে জানান পরিদর্শক ইলিয়াস খান।

চট্টগ্রামের ইপিজেড থানা এলাকায় নিখোঁজের পর হত্যার শিকার ৫ বছরের আলিনা ইসলাম আয়াতের দেহের খণ্ডিত দুটি অংশ উদ্ধার করা হয়েছে।

আকমল আলী সড়ক এলাকার সাগরপাড় স্লুইচ গেটের পাশ থেকে বুধবার দুপুরে খণ্ডিত অংশ দুটি উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক ইলিয়াস খান।

তিনি বলেন, ‘আমরা দুটো পলিথিনে পায়ের মতো দুটো অংশ পেয়েছি। পলিথিন খোলার পর বাকিটা নিশ্চিত করা যাবে।’

নগরীর ইপিজেড থানার বন্দরটিলা নয়ারহাট বিদ্যুৎ অফিস এলাকার বাসা থেকে ১৫ নভেম্বর নিখোঁজ হয় আয়াত। পরদিন ইপিজেড থানায় নিখোঁজ ডায়েরি করেন তার বাবা সোহেল রানা।

এর ৯ দিন পর সিসিটিভি ফুটেজ দেখে জড়িত সন্দেহে আয়াতের পরিবারের ভাড়াটে আবির আলীকে আটকের কথা জাানায় পিবিআই। পিবিআইয়ের দাবি, আটকের পর আয়াতকে খুন ও লাশ গুম করার কথা স্বীকার করেছেন তিনি। ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের জন্য আয়াতকে অপহরণচেষ্টার সময় শ্বাসরোধে হত্যা করেন তিনি।

এরপর গত শনিবার আবিরকে দুই দিনের রিমান্ডে পায় পুলিশ। তাকে নিয়ে আয়াতের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধারে সাগরপাড়ে অভিযানও চলে। এরপর সোমবার আবিরকে দ্বিতীয় দফায় সাত দিনের রিমান্ডে পায় পুলিশ। দ্বিতীয় দফায় রিমান্ডের প্রথম দিন মঙ্গলবার আবিরের মা-বাবাকেও তিন দিনের রিমান্ডে পাঠায় আদালত।

দ্বিতীয় দফায় রিমান্ডের প্রথম দিন আয়াতের খণ্ডিত দেহের খোঁজে সাগরপাড় এলাকায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহায়তায় একটি জলাশয় পানিশূন্য করা হচ্ছে বলে জানান পরিদর্শক ইলিয়াস খান।

আরও পড়ুন:
স্কুলকক্ষে ২ ভাইয়ের মরদেহ: বাবা আটক
শিশু আয়াতকে হত্যার পর ৬ টুকরা করেন সাবেক ভাড়াটিয়া
স্কুলকক্ষে ২ ভাইয়ের মরদেহ, মিলছে না বাবার খোঁজ
কোথায় গেল ছোট্ট আয়াত!
শিশুর বস্তাবন্দি মরদেহ প্রতিবেশীর ঘরে

মন্তব্য

p
উপরে