× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Allegation of beating night watchman against UNO
google_news print-icon

নৈশপ্রহরীকে মারধরের অভিযোগ ইউএনওর বিরুদ্ধে

নৈশপ্রহরীকে-মারধরের-অভিযোগ-ইউএনওর-বিরুদ্ধে
সমর কুমার পাল। ছবি: সংগৃহীত
শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আলমগীর বলেন, ‘আমার বউয়ের কমপ্লেইনে ইউএনও স্যার আমাকে তার অফিসে ডাকেন। সেখানে গেলে আনসার সদস্যরা আমাকে ধরে তার (ইউএনও) কাছে নিয়ে যায়। ইউএনও স্যার এগিয়ে এসে আমাকে লাঠি দিয়ে মারতে শুরু করেন। ওই সময় তার দেহরক্ষী দুই আনসার সদস্য আমাকে ধরে রাখে।’

বগুড়ায় সদরের ইউএনও সমর কুমার পালের বিরুদ্ধে আলমগীর হোসেন নামে তৃতীয় শ্রেণির এক কর্মচারীকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করার অভিযোগ উঠেছে। মারধরের পর তাকে উপজেলা পরিষদের ক্যাম্পাসে ফেলে রাখা হয়।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে সদর উপজেলা পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। পরে আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে ভর্তি করেন স্বজনরা।

স্বজনদের দাবি, সালিস বিচারের নামে ইউএনও ও তার ব্যক্তিগত প্রহরীরা আলমগীরকে বেধড়ক পিটিয়ে উপজেলা পরিষদের ক্যাম্পাসে ফেলে রাখেন।

আলমগীর হোসেন সদর উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল দপ্তরের নৈশপ্রহরী। তিনি সিরাজগঞ্জ সদরের মেহের আলীর ছেলে। বর্তমানে চাকরির সুবাদে উপজেলা পরিষদের কর্মচারীদের কোয়ার্টারে থাকেন।

এদিকে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে এক কর্মচারী অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকার একটি পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

শজিমেক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আলমগীর বলেন, ‘আমার বউ গ্রামের বাড়িতে না থেকে আমার সঙ্গে থাকতে চায়। এ নিয়ে ১৫ দিন আগেও উপজেলা প্রকৌশলী স্যারের কাছে আমার নামে কমপ্লেইন দিয়েছে। এটা নিয়ে স্যার আমাকে তিনবার শো-কজ করেছেন। আমি জবাব দিছি। আজ ইউএনও স্যারের কাছে বউ গিয়ে আবার কমপ্লেইন দেয়।

‘এই কমপ্লেইনে ইউএনও স্যার আমাকে তার অফিসে ডাকেন। আমি গেলে আনসার সদস্যরা আমাকে ধরে তার (ইউএনও) কাছে নিয়ে আসে। মোটা মোটা লাঠিও আনে তারা।’

আলমগীর বলেন, ‘ইউএনও স্যার এগিয়ে এসে আমাকে লাঠি দিয়ে মারতে শুরু করেন। ওই সময় তার দেহরক্ষী দুই আনসার সদস্য আমাকে ধরে রাখে।

‘আমি অনেক কাকুতি-মিনতি করেছি। কিন্তু স্যার আমাকে মারতেই থাকেন। একবার অচেতনও হয়ে পড়ি। তারপরও মারছেন আমাকে।’

আহত আলমগীরকে হাসপাতালে নেন তার মেয়ে জামাতা মাসুদ রানা। তিনি ঠিকাদারির কাজ করেন এবং বগুড়ার শাজাহানপুরের দুবলাগাড়ীতে বসবাস করেন।

মাসুদ রানা বলেন, ‘আমার শাশুড়ি শহীদা বেগমের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সন্ধ্যায় ইউএনও সাহেব আমার শ্বশুর আলমগীর হোসেনকে ডাকেন। সেখানে গেলে তার কথা বিস্তারিত না শুনেই বেধড়ক মারধর করেন ইউএনও।’

মাসুদ রানা অভিযোগ করে বলেন, ‘সালিসের বিষয়ে আগেই জানিয়েছিলেন শ্বশুর। কিন্তু আমরা আসার আগেই মারধর করেন ইউএনও সমর কুমার পাল। সহ্য করতে না পেরে আমার স্ত্রীকে ফোন দিয়ে তাড়াতাড়ি এসে বাঁচাতে বলেন শ্বশুর।’

আলমগীরের মেয়ে জামাই দাবি করেন, সন্ধ্যার পর উপজেলায় গেলে পরিষদের সামনে মাটিতে পড়ে থাকতে দেখেন তার শ্বশুরকে। তখন প্রায় অচেতন ছিলেন আলমগীর।

মাসুদ রানা বলেন, ‘ওই সময় আমি ইউএনও সাহেবের সঙ্গে দেখা করতে যাই। তিনি তখন ব্যাডমিন্টন খেলার কোর্টে বসে ছিলেন। কিন্তু তার দেহরক্ষী আনসার সদস্যরা আমাকে দেখা করতে দেননি। পরে আমরা শ্বশুরকে হাসপাতালে নিয়ে আসি।’

তবে মারধরের অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেন সদর ইউএনও সমর কুমার পাল।

তিনি জানান, আলমগীর সদর উপজেলা প্রকৌশল অফিসের নৈশপ্রহরী পদে চাকরি করেন। বেশ কিছুদিন ধরে তার স্ত্রীর সঙ্গে ঝামেলা চলছে। আলমগীর তার বউকে উপজেলা ক্যাম্পাসে এনেছেন। রাতযাপন করেছেন। কিন্তু বউকে এখানে রেখে তিনি বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। বিষয়টি তিনি বুধবার জানতে পারেন।

ইউএনও বলেন, ‘গতকাল (বুধবার) রাত ১২টার দিকে আলমগীরের স্ত্রীকে উপজেলার সিঁড়ির কাছে একটি বেঞ্চে বসে থাকতে দেখি। পরে খোঁজখবর করে জানতে পারি তার মেয়ের বাড়ি মাঝিড়াতে। এ কথা শুনে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় তাকে সেখানে পাঠিয়ে দিই।

‘ওই ঘটনার পর আজ বিকেলে দেখি আলমগীর কোথা থেকে এসেছে। আমি তাকে ডেকে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দিয়েছি। আর তাকে বলেছি- তুমি এই সমস্যার সমাধান না করে এখানে আসবা না। এছাড়া উপজেলা প্রকৌশলীকেও বলে দিয়েছি- ভাই, এই ছেলেকে আপনি বদলি করেন।’

সমর কুমার পাল আরও বলেন, ‘এরপর দেখি সিমপ্যাথি নেয়ার জন্য আলমগীর আমগাছের নিচে শুয়ে পড়ে। সবাইকে বলছে তাকে মারধর করা হয়েছে। অনেকেই তার এ কাজে ইন্ধন দিচ্ছে। কিন্তু আমার দিক থেকে কোনো মারধরের ঘটনা ঘটেনি।’

আলমগীরের স্ত্রী কোনো অভিযোগ করেছেন কিনা- এমন প্রশ্নে ইউএনও বলেন, ‘তাকে তো আলমগীর ফেলে রেখে চলে গিয়েছিল। আমি পরিষদের নিরাপত্তার কারণে ও সুনাম রক্ষার স্বার্থে তাকে মেয়ের বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছি।’

আরও পড়ুন:
ঘোড়াঘাটের ইউএনওকে হত্যাচেষ্টার রায় ৩ মাসের মধ্যে
আপনার আচরণ রাষ্ট্রের জন্য কলঙ্ক, ইউএনওকে হাইকোর্ট
ইউএনও-এসিল্যান্ডের নামে আদালতে মামলা
ইউএনওকে হত্যাচেষ্টা মামলা: তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্য নিতে সমন
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ২ ইউএনওর ওপর অসন্তুষ্ট ডিসি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
After two years of disappearance it was found that Mofizul was murdered
মরদেহ উদ্ধার

নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল খুন হয়েছিলেন মফিজুল

নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল খুন হয়েছিলেন মফিজুল নাটোরের গুরুদাসপুরে রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মাটি খুঁড়ে চাঁচকৈড় পুরানপাড়া মহল্লার একটি বালিকা মাদ্রাসার সেপটিক ট্যাংকের পাশ থেকে মফিজুলের পুঁতে রাখা দেহাবশেষ উদ্ধার করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। ছবি: সংগৃহীত
নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাইনুল ইসলাম বলেন, ‘নিহত মফিজুলের স্বজনরা মনে করেছিলেন, অভিমান বা অন্য কোনো কারণে তিনি নিখোঁজ হয়েছেন। একসময় হয়ত বাড়িতে ফিরেও আসবেন। আশায় প্রতীক্ষার প্রহর গুণছিলেন তার স্বজনরা, কিন্তু দুই বছর পর সবাই জানতে পারলেন, খুন হয়েছেন তিনি।’

এ যেন সিনেমাকেও হার মানায়। স্বজনরা মনে করেছিলেন, মফিজুল একদিন ফিরে আসবেন; কিন্তু নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল তিনি খুন হয়েছেন; প্রেমের সম্পর্কের জেরে খুন হয়েছেন দুবছর আগেই।

এমন চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটেছে নাটোরের গুরুদাসপুরে। রোববার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত মাটি খুঁড়ে চাঁচকৈড় পুরানপাড়া মহল্লার একটি বালিকা মাদ্রাসার সেপটিক ট্যাংকের পাশ থেকে মফিজুলের পুঁতে রাখা দেহাবশেষ উদ্ধার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত চারজনকে গেপ্তার করা হয়েছে।

নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাইনুল ইসলাম জানান, বিস্কুট ফ্যাক্টরিতে চাকরির সুবাদে গুরুদাসপুর উপজেলার খলিফাপাড়া মহল্লার এক সন্তানের পিতা মাফিজুলের সঙ্গে একই মহল্লার গৃহবধূ তানজিলা খাতুনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এ নিয়ে তানজিলার সঙ্গে তার স্বামী আল হাবিবের দাম্পত্যে বিবাদ দেখা দেয়। বিষয়টি নিয়ে তানজিলার বাবা আবু তাহের খলিফার কাছে অভিযোগ করেন হাবিব।

এ ঘটনায় ক্ষিপ্ত হয়ে জামাতা হাবিবকে সঙ্গে নিয়ে মফিজুলকে হত্যার পরিকল্পনা করেন আবু তাহের খলিফা। প্রেমিকের কারণে সংসারে অশান্তি হচ্ছে ভেবে তাদের পরিকল্পনায় শামিল হন তানজিলাও।

নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল খুন হয়েছিলেন মফিজুল

পরবর্তীতে ২০২২ সালের ১৭ এপ্রিল কৌশলে মাফিজুলকে তারা চাঁচকৈড় বালিকা দাখিল মাদ্রাসার ভেতরে নিয়ে যান। সেখানে মফিজুলের হাত-পা বেঁধে ও মুখে স্কচটেপ আটকে তারা তিনজনসহ আরও কয়েকজন মিলে দেশীয় অস্ত্রের আঘাতে তাকে হত্যা করেন। পরে প্লাস্টিকের বস্তায় ভরে মাফিজুলের মরদেহ মাটিতে পুঁতে রাখেন তারা।

ছেলে নিখোঁজ হয়েছে ভেবে মাফিজুলের মা গুরুদাসপুর থানায় ২০২২ সালের ৭ মে থানায় জিডি করেন।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের পর তানজিলা-হাবিব দম্পত্তির মধ্যে কলহ আরও বেড়ে যায়। এ কারণে ২০২২ সালের মে মাসে স্বামীর বিরুদ্ধে যৌতুক ও নারী নির্যাতনের মামলা করেন তানজিলা। ওই মামলায় নাটোর কারাগারে যান আল হাবিব।

নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল খুন হয়েছিলেন মফিজুল

এরপর দীর্ঘদিন কারাবাসে থাকায় গুরুদাসপুরের খলিফাপাড়া মহল্লার জাকির মুন্সি নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে কারাগারে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে আল হাবিবের। আলাপচারিতায় আল হাবিব হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জাকির মুন্সিকে জানান।

জাকির জামিনে মুক্তি পেয়ে নিহত মাফিজুলের পরিবারকে ঘটনাটি খুলে বলে। সবশেষ দুদিন আগে কারাগার থেকে জামিনে বেরিয়ে আসেন আল হাবিব।

শুক্রবার রাতেই নিহত মাফিজুলের মা মাইনুর বেগম বাদী হয়ে গুরুদাসপুর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলার পর পুলিশ ও র‌্যাব যৌথ অভিযান চালিয়ে আবু তাহের খলিফা, মেয়ে তানজিলা খাতুন, জামাই আল হাবিব সরকার ও তাদের প্রতিবেশী আশরাফুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে হত্যার শিকার মাফিজুলের পুঁতে রাখা দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়।

নিখোঁজের দুই বছর পর জানা গেল খুন হয়েছিলেন মফিজুল

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, ‘নিহত মফিজুলের স্বজনরা মনে করেছিলেন, অভিমান বা অন্য কোনো কারণে তিনি নিখোঁজ হয়েছেন। একসময় হয়ত বাড়িতে ফিরেও আসবেন।

‘আশায় প্রতীক্ষার প্রহর গুণছিলেন তার স্বজনরা, কিন্তু দুই বছর পর সবাই জানতে পারলেন, খুন হয়েছেন মাফিজুল।’

এ ঘটনায় অভিযুক্তদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছেন স্থানীয়রা।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Reception for more than 600 leaders and workers of Pabna BNP released from jail

জেল থেকে ছাড়া পাওয়া পাবনা বিএনপির ৬ শতাধিক নেতা-কর্মীকে সংবর্ধনা

জেল থেকে ছাড়া পাওয়া পাবনা বিএনপির ৬ শতাধিক নেতা-কর্মীকে সংবর্ধনা ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের ওইসব নেতা-কর্মীকে ফুলের মালা দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেন কেন্দ্রীয় ও জেলা বিএনপির নেতারা।

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে বিভিন্ন সময় কারাবরণ করা ছয় শতাধিক নেতা-কর্মীকে সংবর্ধনা দিয়েছে পাবনা জেলা বিএনপি। বিএনপি ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের ওইসব নেতা-কর্মীকে ফুলের মালা দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নেন কেন্দ্রীয় ও জেলা বিএনপির নেতারা।

রোববার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে পাবনা শহরের লাহেড়ী পাড়াস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপির কেন্দ্রীয় ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়াল মিন্টু বলেন, ‘দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রেও আমাদের নেতা-কর্মীরা ঐক্যবদ্ধ ছিল। যার কারণে হাজার চেষ্টা করেও দলকে ভাঙতে পারে নাই।’

তিনি বলেন, ‘যে কারণে আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধ করেছিলাম, সেই উদ্দেশ্য আজ ধূলিসাৎ হতে চলেছে। মানুষের অধিকার আজ লুন্ঠিত। সেই অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য আমাদের সংগ্রাম চলবেই।

‘বিএনপির সংগ্রাম না করলে কেউ সংগ্রাম করবে না। কারণ বিএনপিই দেশের সবচেয়ে বড় ও জনপ্রিয় দল। এ জন্যই চলমান আন্দোলনে বিএনপি নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই স্বৈরাচারী সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।’

জেল থেকে ছাড়া পাওয়া পাবনা বিএনপির ৬ শতাধিক নেতা-কর্মীকে সংবর্ধনা

নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে চালিয়ে চাওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রধান বক্তা বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী ও পাবনা জেলা বিএনপির সমন্বয়ক শামসুর রহমান শিমুল বলেন, ‘দেশনায়ক তারেক রহমানের ডাকে যে ভোট বর্জনের ডাক দেয়া হয়েছিল, জনগণ সেই ডাকে সাড়া দিয়ে ভোট বর্জনের মাধ্যমে তারেক রহমানকে নৈতিক সমর্থন দিয়েছে।

‘আমাদের আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে। আন্দোলন সফল করে তোলার আগে আমরা ঘরে ফিরে যাব না। এজন্য সবার আগে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।’

নিজেদের মধ্যে বিভেদ ভুলে যেতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকে হাতে হাত মিলিয়ে দেশনায়ক তারেক রহমানের হাতকে শক্তিশালী করে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। যে লড়াই তারেক রহমান শুরু করেছেন, সেই লড়াইয়ে বিজয়ী না হয়ে আমরা শান্ত হব না।’

জেল থেকে ছাড়া পাওয়া পাবনা বিএনপির ৬ শতাধিক নেতা-কর্মীকে সংবর্ধনা

পাবনা জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুস সামাদ খান মন্টুর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাকসুদুর রহমান মাসুদ খন্দকারের পরিচালনায় আরও বক্তব্য দেন রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চন্দন ও কৃষক দলের আহ্বায়ক কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সাবেক সংসদ সদস্য কে এম আনোয়ারুল হক, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য জহুরুল ইসলাম বাবু, জেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ মান্নান, যুগ্ম আহ্বায়ক আনিসুল হক বাবু, আবু ওবায়দা শেখ তুহিন, নুর মোহাম্মদ মাসুম বগা, জেলা বিএনপির সাবেক প্রচার সম্পাদক জহুরুল ইসলাম, ঈশ্বরদী উপজেলা বিএনপির সাবেক আহ্বায়ক সন্টু সরদার, সদর উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক রেহানুল ইসলাম বুলাল প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
বিএনপি নেতা হাবিবের সাজা আপিলেও বহাল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Life sentence for 5 people in Jhenaidah fish farmer killing

ঝিনাইদহে মাছচাষী হত্যায় ৫ জনের যাবজ্জীবন

ঝিনাইদহে মাছচাষী হত্যায় ৫ জনের যাবজ্জীবন ফাইল ছবি
রোববার সকালে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. বাহাউদ্দিন আহমেদ এ দণ্ড দেন।

ঝিনাইদহে মাছ চাষী শরিফুল ইসলাম টুলু হত্যা মামলায় ৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

রোববার সকালে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. বাহাউদ্দিন আহমেদ এ দণ্ড দেন।

মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ইসমাইল হোসেন জানান, ২০০৯ সালের ৭ সেপ্টেম্বর বিকেলে সদর উপজেলার লাউদিয়া গ্রামের একটু পুকুরে মাছের খাবার দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন ওই গ্রামের শফিকুল ইসলাম টুলু। সে সময় পূর্ব শত্রুতার জেরে একই গ্রামের জাহিদুল ইসলাম, জসিম, খোকনসহ আরও কয়েকজন তাকে লোহার রড ও হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে।

তিনি জানান, সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল ও পরে খুলনা মেডিক্যালে ভর্তি করা হলে পরদিন মারা যান। এ ঘটনায় ৯ সেপ্টেম্বর নিহতের ভাই সরফুদ্দিন বাদী হয়ে ৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।

ইসমাইল হোসেন জানান, মামলার বিচারিক প্রক্রিয়া শেষে দোষী প্রমাণিত হওয়ায় আসামি জাহিদুল, খোকন, ইলিয়াস, জসিম ও সেলিমকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন বিচারক।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Where did the skeleton go from the grave?

কবর থেকে কঙ্কাল গেল কোথায়

কবর থেকে কঙ্কাল গেল কোথায় ছবি: নিউজবাংলা
এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। তারা জানান, এই কবরস্থানে তাদের পূর্বপুরুষদের দাফন করা হয়েছে। অনেক সময় তাদের কথা মনে পড়লে কবর জিয়ারত করেন তারা, কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে ‘মরেও শান্তি নাই’ বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।

মানিকগঞ্জের জান্নাতুল বাকি কবরস্থান থেকে ১৮টি কঙ্কাল চুরির ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার রাতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের শিবালয় উপজেলার মহাদেবপুর ইউনিয়নের নবগ্রাম এলাকায় অবস্থিত ওই কবরস্থানে এ ঘটনা ঘটে।

মহাদেবপুর ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘রোববার সকালে স্থানীয়রা কবরস্থানের পাশের রাস্তা দিয়ে কাজে যাওয়ার পথে কবরের মাটি খোড়া দেখে কবরস্থান কমিটির লোকজনকে জানান। পরে তারা গিয়ে দেখেন, রাতের আঁধারে কারা ১৮টি কঙ্কাল চুরি করে নিয়ে গেছে। এরপর বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়।’

এর আগেও এই কবরস্থান থেকে কয়েকবার কঙ্কাল চুরি হয়েছে বলে জানান তিনি।

এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। তারা জানান, এই কবরস্থানে তাদের পূর্বপুরুষদের দাফন করা হয়েছে। অনেক সময় তাদের কথা মনে পড়লে কবর জিয়ারত করেন তারা, কিন্তু বর্তমান প্রেক্ষাপটে ‘মরেও শান্তি নাই’ বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তারা।

শিবালয় থানার ওসি আব্দুর রউফ সরকার জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। রাতের আঁধারে কারা কী উদ্দেশ্যে কঙ্কাল চুরি করেছে, তা তদন্ত করে বের করা হবে।

জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও তিনি জানান।

আরও পড়ুন:
দাফনের পর মরদেহ মিলল বাঁশঝাড়ে
কঙ্কাল চোর চক্রের ৬ সদস্য গ্রেপ্তার
কবরস্থান থেকে ৫ নারীর কঙ্কাল চুরি
‘একেকটি কঙ্কাল বিক্রি হয় সাড়ে ৬ থেকে ৭ হাজার টাকায়’
কবরস্থান থেকে রাতারাতি ১১ কঙ্কাল উধাও

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death of uncle nephew due to alcohol consumption at Gaye Turan event

গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে ‘মদ্যপানে’ মামা-ভাগ্নের মৃত্যু

গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে ‘মদ্যপানে’ মামা-ভাগ্নের মৃত্যু নিহত দীপু সরকার (বাঁয়ে) ও প্রসেনজিৎ সরকার। কোলাজ: নিউজবাংলা
নিহত দীপুর মামাতো ভাই সঞ্জয় সরকার বলেন, ‘শুক্রবার রাতে সদর উপজেলার হাটিপাড়া ইউনিয়নের জগন্নাথপুর এলাকায় আমার বোনের গায়ে হলুদ ছিল। এ উপলক্ষে দীপু ও প্রসেনজিৎসহ ৬/৭ জন যুবক দেশীয় মদ্যপান করে আনন্দ করেন।’

মানিকগঞ্জ সদরে বিয়ের অনুষ্ঠানে দেশীয় মদ্যপানে দীপু সরকার ও প্রসেনজিৎ সরকার নামের দুই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। নিহত দুই যুবক সম্পর্কে মামা-ভাগ্নে বলে জানা গেছে।

শনিবার রাতে মানিকগঞ্জ কর্নেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও মানিকগঞ্জ মুন্নু মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে তাদের মৃত্যু হয়।

২১ বছর বয়সী প্রসেনজিৎ মানিকগঞ্জের হরিরামপুরের বয়রা ইউনিয়নের দাসকান্দি বয়ড়া এলাকার বাসিন্দা এবং ২৯ বছর দীপু সরকার গাজীপুরের ভাওয়াল কলেজ পাড়া এলাকার সতীশ সরকারের ছেলে।

নিহত দীপুর মামাতো ভাই সঞ্জয় সরকার বলেন, ‘শুক্রবার রাতে সদর উপজেলার হাটিপাড়া ইউনিয়নের জগন্নাথপুর এলাকায় আমার বোনের গায়ে হলুদ ছিল। এ উপলক্ষে দীপু ও প্রসেনজিৎসহ ৬/৭ জন যুবক দেশীয় মদ্যপান করে আনন্দ করেন।’

তিনি বলেন, ‘সারা রাত আনন্দ করার পর শনিবার সকালে দীপু ও প্রসেনজিৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। বাড়িতে বিশ্রামের পর অবস্থা আরও খারাপ হওয়ায় শনিবার সন্ধ্যায় তাদের হরিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানকার দায়িত্বরত চিকিৎসক তাদের মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে রেফার করেন, কিন্তু পরিবারের লোকজন দীপুকে মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে না নিয়ে মানিকগঞ্জ কর্ণেল মালেক মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে এবং প্রসেনজিৎকে মুন্নু মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালে নিয়ে যায়। তবে দুই হাসপাতাল থেকেই চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, দীপুর মরদেহ বলড়া শ্মশানে দাহ করা হয়েছে। আর প্রসেনজিতের মরদেহ মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে রাখা হয়েছে।

এ ছাড়া আহত আরও চারজন নবাবগঞ্জের বান্দুরা হেলাল জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

মানিকগঞ্জ সদর থানার ওসি মো. হাবিল হোসেন বলেন, ‘নিহত প্রসেনজিত সরকারের মরদেহের সুরতহাল করা হয়েছে। এ বিষয়ে হরিরামাপুর থানা পুলিশকে আইনগত ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে।

‘প্রাথমিক অবস্থায় ধারণা করা হচ্ছে, তারা বিষক্রিয়ায় মারা গেছেন। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।’

আরও পড়ুন:
কালিয়াকৈরে একদিনে চার যুবকের মৃত্যু
শিক্ষাসফরে ‘মদ্যপান’: দুই শিক্ষক বরখাস্ত, তদন্তে কমিটি
শিক্ষাসফরে স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মদ্যপান, ভিডিও ভাইরাল
হাজারীবাগে প্রেমিকের বন্ধুর বাসায় তরুণীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
No one has to go without food now Agriculture Minister

কাউকে এখন না খেয়ে থাকতে হয় না: কৃষিমন্ত্রী

কাউকে এখন না খেয়ে থাকতে হয় না: কৃষিমন্ত্রী ফাইল ছবি
মন্ত্রী বলেন, অর্থের অভাবে বিনা চিকিৎসায় কেউ মারা যাক আওয়ামী লীগ সরকার সেটা চায় না। তাই বর্তমান সরকার হতদরিদ্র অসচ্ছল মানুষদের সুচিকিৎসার জন্য আর্থিক অনুদান প্রদান করে যাচ্ছে।

কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুস শহীদ বলেছেন, কাউকে এখন না খেয়ে থাকতে হয় না। দেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের আমলে খাদ্য নিরাপত্তায় অভাবনীয় সাফল্য অর্জিত হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যায় মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার রাজঘাট ইউনিয়নের বর্মা ছড়া চা বাগানে চা শ্রমিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, অর্থের অভাবে বিনা চিকিৎসায় কেউ মারা যাক আওয়ামী লীগ সরকার সেটা চায় না। তাই বর্তমান সরকার হতদরিদ্র অসচ্ছল মানুষদের সুচিকিৎসার জন্য আর্থিক অনুদান প্রদান করে যাচ্ছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন দেশের মানুষ যেন শান্তিতে থাকে। তার কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা সেই লক্ষ্যে কাজ করছি বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি এবং সরকারি কর্মকর্তাদের সবার কাজ হচ্ছে মানুষের ভালো মন্দ দেখা। মানুষের কল্যাণ হয় এমন কাজ খুঁজে বের করা।

এ সময় শ্রীমঙ্গল উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অর্ধেন্দু কুমার দেব, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক উম্মে ফারজানা, রাজঘাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিজয় ব্যানার্জী প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে মন্ত্রী কমলগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড, জন্মগত হৃদরোগ ও থ্যালাসেমিয়া রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে আর্থিক অনুদানের চেক বিতরণ করেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
After four months the girl returned to her mothers arms

চার মাস পর মায়ের কোলে ফিরল মেয়ে

চার মাস পর মায়ের কোলে ফিরল মেয়ে রোববার আদালতের নির্দেশে পুলিশ মেয়েটিকে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করে। ছবি: নিউজবাংলা
শিপা বেগম বলেন, ‘মেয়েকে ফিরে পেতে গত ২৯ অক্টোবর সুনামগঞ্জ আদালতে মামলা করি। মামলার চার মাস পর আজ আমি আমার বুকের ধনকে ফিরে পেয়েছি।’

চার মাসের আইনি লড়াই শেষে অবশেষে মেয়েকে নিজের জিম্মায় ফিরে পেয়েছেন সুনামগঞ্জের এক নারী।

রোববার দুপুরে সুনামগঞ্জ আদালতের নির্দেশে পুলিশ ওই শিশুকে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করে।

মামলার বরাতে পুলিশ জানায়, ৬ বছর আগে জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের জয়নগর গ্রামের মোস্তফা কামালের ছেলে ঈসা খানের সঙ্গে হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার বড় ভাকৈর ইউনিয়নের হরিনগর গ্রামের মৃত হাবিজ মিয়ার মেয়ে শিপা বেগমের বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের ৫ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, গত ২৯ অক্টোবর শিপা বেগমকে তার স্বামী মারধর করলে তিনি ৩১ অক্টোবর স্বামীর নামে আদালতে মামলা করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শিপা বেগমের শ্বশুরবাড়ির লোকজন মেয়েটিকে আটকে রাখে।

এ বিষয়ে শিপা বেগম বলেন, ‘মেয়েকে ফিরে পেতে গত ২৯ অক্টোবর সুনামগঞ্জ আদালতে মামলা করি। মামলার চার মাস পর আজ আমি আমার বুকের ধনকে ফিরে পেয়েছি।’

জগন্নাথপুর থানার ওসি আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আদালতের নির্দেশ পাওয়ার পর শিশুটিকে তার বাবার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়। পরে আদালতের মাধ্যমে তাকে তার মায়ের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

মন্তব্য

p
উপরে