× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Blast GMP Commissioner expresses condolences to Ronis kin
hear-news
player
google_news print-icon

বিস্ফোরণ: রনির স্বজনদের কাছে দুঃখ প্রকাশ জিএমপি কমিশনারের

বিস্ফোরণ-রনির-স্বজনদের-কাছে-দুঃখ-প্রকাশ-জিএমপি-কমিশনারের
চিকিৎসকদের কাছে আহতদের বিষয়ে খোঁজখবর নেন জিএমপি কমিশনার। ছবি: নিউজবাংলা
জিএমপির সহকারী কমিশনার (ডিবি ও মিডিয়া) আবু সায়েম নয়ন বলেন, ‘কমিশনার স্যার হাসপাতালে আবু হেনা রনি ও কনস্টেবল জিল্লুর রহমানের স্বজনদের কাছে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং চিকিৎসার বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের (জিএমপি) প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে দগ্ধ কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনিসহ পুলিশ সদস্য কনস্টেবল জিল্লুর রহমানের খোঁজখবর নিতে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে গিয়েছেন জিএমপি কমিশনার মোল্যা নজরুল ইসলাম।

সেখানে তিনি বিস্ফোরণের ঘটনায় দগ্ধদের স্বজনদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে চিকিৎসায় সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

জিএমপির সহকারী কমিশনার (ডিবি ও মিডিয়া) আবু সায়েম নয়ন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘কমিশনার স্যার ইনস্টিটিউটের প্রধান সমন্বয়ক সামন্ত লাল সেনসহ অন্যান্য চিকিৎসকের সঙ্গে আহতদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজখবর নেন। দগ্ধদের সর্বোচ্চ চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকের অনুরোধ জানান।

‘এ সময় তিনি আবু হেনা রনি ও কনস্টেবল জিল্লুর রহমানের স্বজনদের কাছে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন এবং চিকিৎসার বিষয়ে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন।’

এর আগে সকালে ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন এস এম আইউব হোসেন নিউজবাংলাকে জানান, বিস্ফোরণে রনির শরীরের ২৪ শতাংশ পুড়ে গেছে। একই ঘটনায় জিল্লুর রহমান নামে একজনের দেহের ২০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে।

আইউব জানান, শুক্রবার রাত থেকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে এ দুজনকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছিল। আজ সকাল ১০টার দিকে তাদের হাই ডিপেনডেন্সি ইউনিটে (এইচডিইউ) স্থানান্তর করা হয়েছে।

রনি ও জিল্লুরের পরিস্থিতি নিয়ে তিনি বলেন, ‘দুজনকেই আশঙ্কামুক্ত বলা যাবে না।’

গাজীপুর জেলা পুলিশ লাইনসে শুক্রবার বিকেলে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণে রনিসহ পাঁচজন দগ্ধ ও আহত হন।

রনিকে বার্ন ইনস্টিটিউটে নিয়ে আসা সাদিক আল হাসান জানান, জিএমপির বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানে অভিনয় করতে গিয়েছিলেন এ কৌতুক অভিনেতা। সেখানে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরিত হয়। তখন পাশেই দাঁড়িয়ে থাকা রনিসহ অন্যরা দগ্ধ ও আহত হন।

এদিকে বিস্ফোরণের ঘটনায় শনিবার জিএমপির উপকমিশনার (অপরাধ-উত্তর) আবু তোরাব মোহাম্মদ সামছুর রহমানকে প্রধান করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে আগামী তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত উপকমিশনার (অপরাধ-উত্তর) রেজওয়ান আহমেদ, সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) ফাহিম আশজাদ, মেট্রোপলিটন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
গাজীপুরে গ্যাস বেলুন বিস্ফোরণের ঘটনায় তদন্ত কমিটি
বেলুন বিস্ফোরণ: ‘শঙ্কামুক্ত নন’ কৌতুক অভিনেতা রনি
বেলুন বিস্ফোরণে কৌতুক অভিনেতা আবু হেনা রনি দগ্ধ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Killing of teenage driver and carjacking after drinking

মদ্যপান করিয়ে কিশোরকে হত্যা

মদ্যপান করিয়ে কিশোরকে হত্যা হত্যার ১২ ঘণ্টার মধ্যেই গ্রেপ্তার তিন অভিযুক্ত। ছবি: নিউজবাংলা
গত শনিবার (১ অক্টোবর) বন্দরের কলাগাছিয়ার নরপদী এলাকা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় কিশোর অটোচালকের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নারায়ণগঞ্জের বন্দরে এক কিশোর অটোরিকশাচালকের মরদেহ উদ্ধারের ১২ ঘণ্টার মধ্যেই তিনজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। উদ্ধার করা হয়েছে হত্যার পর ছিনিয়ে নেয়া অটোরিকশাটিও।

রোববার বিকেলে এক সংবাদ সম্মেলনে নারায়ণগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল এসব তথ্য জানান।

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন মো. কাউসার, কামরুজ্জামান শিমুল ওরফে শ্যামল ও ফাহিম ওরফে জিকো। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজন লিমন ও হানিফ নামে আরও দুজন এখনও পলাতক রয়েছে। গ্রেপ্তার ও পলাতক পাঁচজনই বন্দর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দা।

এসপি গোলাম মোস্তফা রাসেল জানান, গত ২৮ সেপ্টেম্বর সকালে ১৬ বছর বয়সী চালক মো. কায়েস তার অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। সেদিন রাতে বাড়িতে না ফেরায় তাকে খুঁজাখুঁজি শুরু করেন স্বজনরা। পরদিন বন্দর থানায় তারা একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

এ অবস্থায় গত শনিবার (১ অক্টোবর) বন্দরের কলাগাছিয়ার নরপদী এলাকা থেকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় একটি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

খবর পেয়ে সেখানে পরনের পোশাক দেখে কায়েসকে শনাক্ত করে তার পরিবারের সদস্যরা। এ দিনই তারা বন্দর থানায় একটি হত্যা মামলা করে।

এরপর থেকেই পুলিশ ঘটনার রহস্য উদ্ঘাটনের নামে পুলিশ এবং ১২ ঘণ্টার মধ্যেই জড়িতদের শনাক্ত করতে সক্ষম হয়।

হত্যাকাণ্ডের বিষয়ে পুলিশ সুপার বলেন, ‘শ্যামল, জিকো, লিমন ও হানিফ পূর্বপরিকল্পিতভাবে কায়েসের অটো ভাড়া করে সাবদি ব্রিজের নিচে যায়। সেখানে তারা মদ্যপান করে এবং ওই জায়গায় কায়েসকে হত্যা করে।’

পুলিশ সুপার জানান, মরদেহটি ঘটনাস্থলে রেখেই অটোরিকশা নিয়ে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। পরে অটোরিকশাটি বিক্রি করতে তাদের সহযোগিতা করেন কাউসার নামে আরেকজন।

অভিযুক্ত পাঁচজনের মধ্যে তিনজনকে গ্রেপ্তারের পর বাকি দুজনকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান চলছে।

আরও পড়ুন:
কিশোরকে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ
নিজ ঘরে দশম শ্রেণির ছাত্রের ঝুলন্ত দেহ
টাকা লুট করতে বৃদ্ধ দম্পতিকে পরিকল্পিত হত্যা: এসপি
যুবককে ধাওয়া করে কুপিয়ে হত্যা
ছেলের রক্তাক্ত মরদেহ বাগানে খুঁজে পেলেন মা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The arrest of Anisu who made his wife a sister

স্ত্রীকে বোন বানানো সেই আনিসুর গ্রেপ্তার

স্ত্রীকে বোন বানানো সেই আনিসুর গ্রেপ্তার
আনিছুর রহমানের নামে রংপুর আদালতে চেক ডিজঅনার সংক্রান্ত এনআই অ্যাক্ট ১৩৮ ধারায় একটি মামলা আছে। সেই মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় তাকে শনিবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কোটা এবং সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিতে স্ত্রীকে বোন বানিয়ে এনআইডি জালিয়াতি করে সমালোচিত কুড়িগ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের ছেলে আনিসুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে রংপুর আদালতে চেক ডিজঅনারের মামলা আছে। সেই মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

আনিসুর রংপুর বেতারের অফিস সহকারী। তার বাড়ি কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীর সন্তোষপুর ইউনিয়নে।

তাকে গ্রেপ্তারের তথ্য নিশ্চিত করেছেন নাগেশ্বরী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নবিউল হাসান।

তিনি জানান, আনিছুর রহমানের নামে রংপুর আদালতে চেক ডিজঅনার সংক্রান্ত এনআই অ্যাক্ট ১৩৮ ধারায় একটি মামলা আছে। সেই মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় তাকে শনিবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এর আগে গত ২৭ সেপ্টেম্বর নিউজবাংলার অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে আনিছুরের জালিয়াতির নানা তথ্য। নিউজবাংলায় প্রকাশিত “কোটা সুবিধা নিতে স্ত্রীকে বোন বানালেন মুক্তিযোদ্ধার সন্তান” প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মুক্তিযোদ্ধা কোটার সুযোগ-সুবিধা পেতে স্ত্রীকে তিনি বোন বানিয়ে এনআইডি তৈরি করিয়েছেন।

নাগেশ্বরী উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের কুটিনাওডাঙ্গা আমিরটারী তালবেরহাট গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আইনুল হকের ৮ ছেলে-মেয়ে। তাদের মধ্য সবার বড় আনিছুর রহমান।

২০০৭ সালে জেলার উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের নাগড়াকুরা বাজার এলাকার মৃত রবিউল ইসলামের মেয়ে সোনালী খাতুনকে বিয়ে করেন আনিসুর। সাত ভাই-বোনের মধ্যে সোনালী সবার ছোট। আনিছুর-সোনালী দম্পতির ঘরে যমজসহ বর্তমানে তিন সন্তান রয়েছে।

তবে বিয়ের পর উপজেলার সাপখাওয়া দাখিল মাদ্রাসায় নিজের শ্বশুর-শাশুড়িকে বাবা-মা হিসেবে তথ্য দিয়ে ২০১০-১১ সেশনে অনিয়মিত শিক্ষার্থী হিসেবে ভর্তি হন সোনালী। ২০১৩ সালে জিপিএ-২.৯৪ পেয়ে দাখিল পাস করেন তিনি।

পরে দাখিল পাসের সনদ ও ভুয়া জন্মনিবন্ধন দেখিয়ে ২০১৪ সালে ভোটার হন সোনালী। সনদ অনুসারে মুক্তিযোদ্ধা শ্বশুর আইনুল হককে নিজের বাবা ও শাশুড়ি জামিলা বেগমকে নিজের মা হিসেবে তথ্য দেন তিনি।

আনিছুর রহমানের সঙ্গে সে সময় যোগাযোগ করলে তিনি দাবি করেন, স্ত্রীকে বোন বানানোর বিষয়টি ভুলবশত হয়েছে। তার স্ত্রী এমনটি করেছেন।

তবে বিষয়টি নিয়ে আনিসুরের স্ত্রী সোনালী খাতুন কথা বলতে রাজি হননি।

এর আগে আনিছুর ও তার ভাই আজিজুল হক তথ্য গোপন করে সরকারি চাকরিতে যোগ দেন বলেও অভিযোগ আছে। এনআইডিতে দুই ভাইয়ের একই নাম হলেও আলাদা ছবি ব্যবহার করা হয়েছে।

২০১২ সালে রংপুর বেতারে অফিস সহায়ক পদে চাকরি নেন আনিছুর। আর ২০১৪ সালে রেলওয়ের ওয়েম্যান পদে অষ্টম শ্রেণি পাসের যোগ্যতা দেখিয়ে চাকরি পান আনিসুরের ছোট ভাই আজিজুল হক।

চাকরি নিতে তথ্য গোপনের আশ্রয় নেন আজিজুল। এ ক্ষেত্রে তিনি তার আগের ভোটার আইডি সংশোধন করেন।

বড় ভাই আনিসুরের সব তথ্য ব্যবহার করে তিনি এনআইডি সংশোধন করেন। পড়াশোনা না করেও তিনি বড় ভাই আনিছুর রহমানের অষ্টম শ্রেণি পাসের সনদ ব্যবহার করেন।

আগের ভোটার আইডিতে আজিজুল হকের জন্মসাল ছিল ১৯৮৭ সালের ৫ এপ্রিল। পেশা ছিল কৃষক। নতুন আইডিতে তার জন্মের সাল-তারিখে লেখা ১৯৮২ সালের ৭ জুলাই।

জাতীয় পরিচয়পত্রে তথ্য গোপন করে নাম পরিবর্তন করলেও স্বাক্ষর পরিবর্তন করেননি আজিজুল হক।

২০১৪ সালে এনআইডিতে তথ্য গোপন করে চাকরি করার সংবাদ গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়। পরে তদন্ত করে নির্বাচন কমিশন দুই ভাইয়ের নামে জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন আইনে মামলার নির্দেশ দেয়।

২০২১ সালের ৩১ জানুয়ারি উপজেলা নির্বাচন অফিসার আনোয়ার হোসেন তাদের বিরুদ্ধে একটি মামলাও করেন।

আরও পড়ুন:
সাড়ে ২৪ হাজার বীর মুক্তিযোদ্ধা পাচ্ছেন স্মার্ট আইডি
ব্যবহার হচ্ছে না ঝিনাইদহের মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সগুলো
প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের নথি জালিয়াতি মামলায় চার্জশিট গ্রহণ
বিএনপি রাজাকারদের মুক্তিযোদ্ধা বানিয়েছিল: শাজাহান
জালিয়াতির মামলায় আ. লীগ নেতা কারাগারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Zainal is the hero behind the rescue of Maryams mother

মরিয়মের মাকে উদ্ধারের নেপথ্য নায়ক জয়নাল

মরিয়মের মাকে উদ্ধারের নেপথ্য নায়ক জয়নাল মরিয়ম মান্নানের মা রহিমা (বামে) ও তার খোঁজ পুলিশকে দেন জয়নাল। ছবি: নিউজবাংলা
আত্মগোপনে যাওয়ার পর মরিয়মের মা রহিমা বেগম কখন কোথায় ছিলেন তার সম্পূর্ণ বিবরণ এখনও অস্পষ্ট। তবে তাকে কীভাবে খুঁজে পেয়েছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, তা স্পষ্ট হয়েছে। রহিমার ফরিদপুর অবস্থানের তথ্য জয়নাল খানের মাধ্যমে পেয়েছিল খুলনা পুলিশ।

আলোচিত মরিয়ম মান্নানের মা রহিমা বেগমকে ফরিদপুর থেকে উদ্ধারের পেছনে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেন ফরিদপুরে বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের জয়নাল খান। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতেই রহিমাকে উদ্ধারে সক্ষম হয় দৌলতপুর থানা পুলিশের একটি দল।

এর মাধ্যমে দেশজুড়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টি করা কথিত অপহরণের অভিযোগের সুরাহা হয়েছে। পুলিশ বলছে, স্বেচ্ছায় আত্মগোপন করেছিলেন রহিমা। তার মেয়ে মরিয়ম মান্নানও এখন বলছেন, মায়ের অপহরণের যে অভিযোগ তিনি তুলেছিলেন, সেটি সঠিক ছিল না।

মরিয়মের মা রহিমা গত ২৭ আগস্ট খুলনার দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশার বাড়ি থেকে গত ২৭ আগস্ট রাতে নিখোঁজ হন। মাকে খুঁজে পেতে বিভিন্ন সময় মানববন্ধন, সংবাদমাধ্যমে নানা সাক্ষাৎকার ও ফেসবুকে আবেগঘন পোস্ট দিয়ে এক মাসেরও বেশি সময় ধরে আলোচনায় মরিয়ম মান্নান।

মায়ের নিখোঁজ হওয়ার পেছনে বরাবরই তিনি প্রতিবেশীদের সঙ্গে জমির বিরোধের বিষয়টিকে দায়ী করে আসছিলেন। রহিমা নিখোঁজের পরদিন দৌলতপুর থানায় অপহরণের মামলা করেন তার আরেক মেয়ে আদুরী আক্তার।

এরপর ২২ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহে ১২ দিন আগে উদ্ধার হওয়া এক নারীর মরদেহকে রহিমা বেগমের বলে দাবি করেন মরিয়ম। পরদিন শুক্রবার সকালে বোনদের নিয়ে ফুলপুর থানায় লাশ শনাক্ত করতে যান তিনি। তবে এর পরদিন ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে ফরিদপুরে বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের কুদ্দুস মোল্লার বাড়ি থেকে রহিমাকে স্বাভাবিক অবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

আত্মগোপনে যাওয়ার পর মরিয়মের মা কখন কোথায় ছিলেন তার সম্পূর্ণ বিবরণ এখনও অস্পষ্ট। তবে তাকে কীভাবে খুঁজে পেয়েছিল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, তা স্পষ্ট হয়েছে।

রহিমা বেগমের ফরিদপুর অবস্থানের তথ্য কুদ্দুস মোল্লার ভাগনে জয়নাল খানের মাধ্যমে পেয়েছিল খুলনা পুলিশ।

জয়নাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রহিমা বেগম ১৭ সেপ্টেম্বর বিকেলে আমার মামাদের বাড়িতে আসেন। এরপর শুক্রবার (২৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে আমার মোবাইলে ফেসবুক চালানোর সময় তার নিখোঁজ সংবাদ দেখি। ফেসবুকে এক ভিডিওতে থাকা ছবির সঙ্গে তার (রহিমা) চেহারার মিল দেখে আমি বাড়িতে গিয়ে তার সঙ্গে ছবিটি মিলাই, দেখি উনিই সেই নারী।

‘রহিমা বেগমকে ভিডিও দেখালে তিনি বলেন, এটা তো আমি, কিন্তু আমি বাড়ি ফিরে যাব না।’

এরপর জয়নাল ফেসবুক ভিডিওতে রহিমার ফরিপুরে অবস্থানের তথ্য জানিয়ে কমেন্ট করেন। তবে সেই কমেন্টের কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

জয়নাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এরপর আমি ইন্টারনেটে সার্চ দিতে থাকি। একপর্যায়ে একটি নিখোঁজ বার্তায় রহিমার ছেলে মিরাজের ফোন নম্বর পাই। মিরাজের নম্বরে কল দিলে তার স্ত্রী ফোন ধরেন।

‘ফোনে রহিমা বেগমের বিষয়ে জানালে অপর পাশ থেকে উত্তর আসে, আমি ওনাকে চিনি না। এ নম্বরে আর ফোন দেবেন না। এই বলে ফোন কেটে দেয়া হয়। এরপর আমি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বারের সঙ্গে যোগাযোগ করি।’

তবে মরিয়মের ভাই মিরাজ এর আগে নিউজবাংলাকে জানিয়েছিলেন, ফরিদপুর থেকে যখন কল এসেছিল, তখন তার দুটি ফোনই মরিয়মের কাছে ছিল।

স্থানীয় মেম্বার মোশারফ হোসেন মূসার সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন জয়নাল খান।

মোশারফ হোসেন বলেন, ‘শনিবার সকালে জয়নাল আমাকে রহিমা বেগমের নিখোঁজের বিষয়টি জানায়। আমি এরপর খুলনা সিটি করপোরেশনের ২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল ইসলামকে অবগত করি।

‘বিকেল ৫টার দিকে সাইফুল ইসলাম আমাকে কল দেন। তিনি বলেন, ওই নারীকে দেখে রাখেন, আমরা আসব। রাত ১০টা দিকে আমাকে ফোন করে লোকেশন জানতে চান। এরপর সাড়ে ১০টার দিকে খুলনা পুলিশ বোয়ালমারী থানাকে ইনফর্ম করে তাকে খুলনা নিয়ে যায়।’

জয়নালের কাছ থেকে রহিমার বিষয়ে তথ্য পাওয়ার কথা নিশ্চিত করেছেন খুলনার ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাইফুল ইসলাম। তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি বিষয়টি জানার পর পুলিশকে অবহিত করি। পরে তারা বোয়ালমারীতে যায়।’

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের উপকমিশনার (উত্তর) মোল্লা জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘থানা থেকে আমাকে জানানো হয়, রহিমা বেগম ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে আছেন। এরপর তাৎক্ষণিক সেখানে অভিযান চালাতে নির্দেশ দেয়া হয়।’

এই অভিযানে অন্যতম সদস্য ছিলেন দৌলতপুর থানার উপপরিদর্শক দোলা দে।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সন্ধ্যায় থানা থেকে আমাকে ফোন করে জানায় একটি উদ্ধার অভিযানে যেতে হবে। আমরা রেডি হয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রওনা হই। কোথায় কী অভিযানের যেতে হচ্ছে, তা থানা থেকে আগে আমাকে জানানো হয়নি। ’

‘মাঝপথে গিয়ে জানতে পারি, আমরা মহেশ্বরপাশা থেকে নিখোঁজ গৃহবধূ রহিমা বেগমকে উদ্ধার করতে ফরিদপুরে যাচ্ছি।

‘রাত সাড়ে ১০টার দিকে আমরা ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামে পৌঁছাই। সেখান থেকে সোজা চলে যাই কুদ্দুস মোল্লার বাড়িতে। ‘সেখানে রহিমা বেগম আরও তিনজন নারীর সঙ্গে বসে গল্প করছিলেন। দৌলতপুর থানার ওসি নজরুল ইসলামকে আগে থেকেই রহিমা বেগম চিনতেন। হঠাৎ ওসিকে দেখে তিনি হতবাক হয়ে যান।’

‘রাত ১১টার দিকে আমরা ফরিদপুর থেকে খুলনার উদ্দেশে রওনা হই। গাড়িতে আমার ডান সাইডে বসে ছিলেন রহিমা বেগম। সিনিয়র স্যাররা রহিমা বেগমকে নানান জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলেন। তবে কোনো প্রশ্নেরই তিনি উত্তর দেননি।’

দোলা দে বলেন, ‘রাত সোয়া ২টার দিকে আমরা দৌলতপুর থানায় পৌঁছাই। সেখানে ডিসি স্যার সাংবাদিকদের ব্রিফ করার পর থানায় রহিমা বেগমকে আমার সঙ্গে রেখে দেয়া হয়।’

পরদিন সকালে রহিমা বেগমকে সোনাডাঙ্গার ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাকে নিজেদের জিম্মায় নেন পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের কর্মকর্তারা।

পরে আদালত মেয়ে আদুরী আক্তারের জিম্মায় রহিমা বেগমকে মুক্তি দেয় আদালত।

আরও পড়ুন:
তবুও মরিয়ম মান্নানের ডিএনএ পরীক্ষার অনুমতি দিল আদালত
বোয়ালমারীতে জন্মনিবন্ধন চেয়েছিলেন রহিমা
এসআই দোলার সঙ্গে রহিমার রাতভর ইশারাভাষা
রহিমা বেগম ছাড়া পেলেন মেয়ে আদুরীর জিম্মায়
বস্তাবন্দি সেই নারীর পরিচয় নিয়ে এবার ধন্দে পুলিশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The image of Rangpur Medical changed after the doctor suffered

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র
এক চিকিৎসকে মাকে ভর্তি করাতে যাওয়ার পর পদে পদে টাকা আর কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়ার পর অন্য চিকিৎসকরা সোচ্চার হন। তাদের হুঁশিয়ারির মুখে কর্তৃপক্ষ হয় তৎপর, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নেয় ব্যবস্থা, বদলি করা হয় ১৭ কর্মচারীকে। চুক্তিভিত্তিক দুই জনকে করা হয় বরখাস্ত। এখন রোগী ভর্তি করতে এলে কাউকে বাড়তি টাকা দিতে হয় না। হাসপাতালের পরিবেশও পরিচ্ছন্ন, ছিমছাম।

২১ সেপ্টেম্বরের ঘটনা। গাইবান্ধা সদর উপজেলার বড় দুর্গাপুর গ্রামের বাসিন্দা ইশরাত জাহান ইতি কিডনি রোগে আক্রান্ত মাকে ভর্তি করান রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নেফ্রোলজি বিভাগে। সেদিন জরুরি বিভাগে ভর্তি বাবদ ২০০ টাকা, ট্রলি বাবদ ২৫০ আর বেড পরিষ্কারের জন্য দিতে হয়েছে ৫০ টাকা। কিছুটা সুস্থ হয়ে মাকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যান তিনি।

ঠিক ১০ দিন পর ১ অক্টোবর দুপুরে মাকে নিয়ে ফের হাসপাতালে আসেন ইতি। কিন্তু জরুরি বিভাগে এবার ট্রলির জন্য টাকা চায়নি কেউ, ভর্তি বাবদ ২০০ টাকার বদলে লেগেছে ২৫ টাকা। শয্যা পরিষ্কারের জন্যও কেউ টাকা চেয়ে বিরক্ত করেনি।

হাসপাতালে এমন পরিবর্তন দেখে নিজেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না ইতি। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘মার দুই কিডনিতেই পাথর ছিল। এর আগে একটার চিকিৎসা করা হয়েছে। এবার অন্যটির চিকিৎসার জন্য ভর্তি করলাম। কিন্তু কেউ আমার কাছে টাকা চায়নি। ভর্তি বাবদ ২৫ টাকা নিয়েছে, রিসিটও দিয়েছে। আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি প্রশাসন এখন এত শক্ত।’

ইতির কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় বন্ধ হয়েছে এই হাসপাতালেরই এক চিকিৎসক তার মাকে ভর্তি করে এসে ভুক্তভোগী হওয়ার পর। সেই চিকিৎসকের কাছ থেকেও পদে পদে আদায় করা হয়েছে বাড়তি টাকা। পরিস্থিতি এমন ছিল যে, নিজের কর্মস্থল থেকে মাকে তিনি নিয়ে গেছেন এই ভয়ে যে, এখানে থাকলে তার মায়ের চিকিৎসা হবে না।

সেই চিকিৎসক হাসপাতাল পরিচালকের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তোলপাড় হয়ে যায়। এতদিন সব দেখেও না দেখার ভান করা কর্তৃপক্ষ আর বসে থাকেনি। চিকিৎসক ভোগার পর তারা ব্যবস্থা নেয়ায় আমূল পাল্টে গেছে হাসপাতালের চিত্র। এখন দালালের অত্যাচার নেই, রোগী ভর্তির সঙ্গে সঙ্গে ট্রলি ধরার প্রতিযোগিতা নেই, স্বজনের কাছে বকশিশ চাওয়ার অত্যাচার নেই, নির্ধারিত ভর্তি ফির বাইরে কোনো টাকা দিতে হচ্ছে না।

নোংরা পরিবেশের যে সমস্যায় এতকাল মানুষ ভুগেছে, সেটিও আর নেই। হাসপাতালের ওয়ার্ড, মেঝেতে নেই ময়লা-আবর্জনা। পুরো হাসপাতাল এখন ঝকঝকে চকচকে।

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

পরিস্থিতির এই চিত্র দেখে বিশ্বাস হচ্ছে না রোগী ও তার স্বজনদের। এদের একজন কুড়িগ্রামের উলিপুরের চাচিনা বেগম। গত চার দিন থেকে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে ছোট ভাইয়ের অসুস্থ স্ত্রীর সঙ্গে আছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘এর আগেও হাসপাতালে ছিলাম আমি। কিন্তু এত ভালো ব্যবহার কেউ করেনি। ডাক্তার, নার্স ও আয়া সবাই যেন বাড়ির লোক। কেউ কখনও খারাপ ব্যবহার করেনি। ভর্তির সময় কেউ কোনো টাকা-পয়সা চায় নাই। শুনছি এদিক-সেদিক টাকা নেয়। কিন্তু কেউ চায় নাই।’

পরিবর্তনের নেপথ্যে

গত ১৭ সেপ্টেম্বর মায়ের চিকিৎসা করাতে অর্থোসার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এ বি এম রাশেদুল আমীরের মাকে ভর্তি করানো হয়।

হাসপাতালে ভর্তি ফি ২৫ টাকা হলেও ১০ গুণ ২৫০ টাকা চাওয়া হয়। স্বজনরা চিকিৎসকের পরিচয় জানালে তো নেমে আসে ৫০ টাকায়, তবু তা ছিল নির্ধারিত ফির দ্বিগুণ।

ভর্তির পর রোগীকে করোনারি কেয়ার ইউনিট বা সিসিইউতে পাঠানো হলে সেখানেও দিতে হয় ২০০ টাকা। সেখানে স্বজনরা চিকিৎসকের পরিচয় দেয়ার পর তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হয়।

এর মধ্যে সেই চিকিৎসক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভিডিও করেন। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমার মাকে ভর্তি করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্টেপে টাকার জন্য চাপ দেয়া হয়েছে। ওই কর্মচারী নিজে মাসুদ নামে পরিচয় দেয়। আমি বিষয়টি একসময় ভিডিও করি। সেটি আমার ফেসবুকে পোস্ট করি।’

পরে সেই ভিডিও ফেসবুক থেকে ডিলিট করে দেন চিকিৎসক রাশেদুল আর লিখিত অভিযোগ দেন হাসপাতাল পরিচালকের কাছে।

এসব ঘটনায় যে হাসপাতালে নিজে চাকরি করেন, সেখানে মায়ের চিকিৎসা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে রিলিজ নিয়ে নেন তিনি। রোগী নিয়ে আসার সময় আবার চাওয়া হয়েছে টাকা, এবার আরও বেশি।

নিউজবাংলাকে রাশেদুল বলেন, ‘হয়তো আমার অভিযোগ অনেকে নানাভাবে নিতে পারে। সর্বশেষ গতকাল সোমবার যখন আমার মাকে হাসপাতাল থেকে রিলিজ নিয়ে চলে আসি তখনও ময়লা পরিষ্কার বাবদ আমার কাছে ৩ হাজার টাকা চাওয়া হয়েছে। এটা দুঃখজনক।’

হাসপাতালের এই চিত্র নতুন কোনো কিছু নয়। কিন্তু চিকিৎসকরা ছিলেন নির্বিকার। নিজেদের পেশার একজন ভোগার পর অবশেষে তারা সোচ্চার হন। অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিতে ২৬ সেপ্টেম্বর আন্দোলনে নামেন ‘সম্মিলিত চিকিৎসক সমাজ’।

এরপর কঠোর হয় মন্ত্রণালয়। গত ২৯ সেপ্টেম্বর রংপুর মেডিক্যালের ১৬ কর্মচারীকে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে বদলি করা হয়। এরপর কর্মচারীদের আচরণে আসে পরিবর্তন।

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

এর পাশাপাশি চিকিৎসক রাশেদুল আমীরের স্বজনদের অশোভন আচরণ ও টাকা নেয়ার দায়ে চুক্তিভিত্তিক দুই কর্মচারী মাসুদ ও ঝর্ণাকে চাকরি থেকে বরখাস্তও করা হয়। এতে চুক্তিভিত্তিক অন্য কর্মচারীদের মধ্যেও ভয় ঢুকেছে।

‘চিকিৎসকরা আগে উদ্যোগী হলে আমাদের ভুগতে হতো না’

হাসপাতালের চিত্র পাল্টানোয় খুশি মাকে ভর্তি করতে এসে হয়রানির শিকার হওয়া চিকিৎসক এ বি এম রাশেদুল আমীর। তিনি জোর দিয়েছেন এই পরিবর্তন ধরে রাখার ওপর।

নিউজবাংলাকে রাশেদুল আমীর বলেন, ‘অ্যাজ এ ম্যান অফ রংপুর, আমি সব সময় চাই রংপুরের মানুষ এখান থেকে সবচেয়ে ভালো সেবা পাক। আমরা রংপুরবাসী যদি সবাই এক হই তাহলে এটা ধরে রাখা যাবে। এই যে বদলে গেছে এটাকে ধরে রাখতে হবে।’

স্বস্তিতে স্বজনরা

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা চান মিয়া বলেন, ‘আমি এক মাস আগেও এখানে ভর্তি ছিলাম। তখন ট্রলিতে টাকা নিয়েছে, ভর্তিতে নিয়েছে। ওয়ার্ডে টাকা নিয়েছে। কিন্তু আইজ আমার ছোট ভাইকে নিয়ে হাসপাতালে আছি। কেউ টাকা চায় নাই।’

গাইবান্ধার নুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমি কী বলব আপনাদের? দেখেন হাসপাতাল কত পরিষ্কার। কোথাও কোনো কাগজটাগজ নাই। ময়লা নাই, বাদামের খোল্ডা (খোসা) নাই। বিচনে (বেড) রুম সব পরিষ্কার। নিচতলা থেকে ওপরতলা কেউ টাকাটোকা চাইছে না। এমন পরিবেশ থাকলে তো ভালো হয়।’

কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছের বাসিন্দা বেলায়েত হোসেন লিটু সরকার বলেন, ‘আমার ভাই হৃদরোগে আক্রান্ত ছিল। ছিল সিসিইউতে। এখনকার পরিবেশ অনেক ভালো। এবার সেবা অনেক ভালো পাইছি।’

রাশেদুল মনির নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘আগেই এই হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা নিয়ে বহু অভিযোগ ছিল। তখন কোনো চিকিৎসকই এভাবে প্রতিবাদ করে এগিয়ে আসেনি। যদি এভাবে চিকিৎসকরা এগিয়ে আসত, তাহলে এই হাসপাতাল বহু আগেই দালালমুক্ত হতো। মানুষ এত হয়রানি হতো না।’

কর্তৃপক্ষ যা বলছে

রংপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ বিমল চন্দ্র রায় জানান, ‘আমাদের আন্দোলনের কারণে এমনটা হয়েছে কি না, জানি না। আমরা চাই এই হাসপাতালে এসে কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন। যে স্টেপটা নেয়া হয়েছে তাতে যেন হাসপাতালটা ভালো চলে- এই কারণে এই উদ্যোগ। এখন সবাই হেল্প করতেছে- এটা যেন অব্যাহত থাকে। তাহলে মানুষের আস্থার জায়গা থাকবে।'

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

হাসপাতালের পরিচালক শরীফুল হাসান বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে পরিকল্পনা নিচ্ছি। উন্নয়নের চাবিকাঠি হলো পরিকল্পনা। এটা আমার অবদান তা কিন্তু নয়। আমি চেষ্টা করছি মাত্র।’

তিনি বলেন, ‘আমরা একটি সিস্টেম ডেভেলপ করতে চেয়েছি, সেটি করছি। আমরা দেখছি জরুরি বিভাগে সমস্যা আছে, সেখানে ব্যবস্থা নিয়েছি। নিয়মতান্ত্রিকভাবে এখন সব চলবে।’

তবু অভিযোগ অস্বীকার কর্মচারীদের

হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী মো. বাদল জানান, ‘আমরা সরকারি কর্মচারীরা কখনও টাকা নেই নাই। আমাদের কর্তব্য আমরা করতেছি, ট্রলি ঠেলতেছি। এখন দালালটালাল নেই। কাউকে টাকা দেয়া লাগে না।’

আপনারা থাকতে টাকা কীভাবে নিয়েছে জানতে চাইলে বাদল বলেন, ‘ওরা আউটসোর্সিংয়ের কর্মী ছিল। যে যার মতো করে নিত। আমাদের উপস্থিতিতে নিত না।’

নাম প্রকাশ না করে একজন নার্স বলেন, ‘আপনি নিজেই দেখেন সিট কত আর ভর্তি কত। একবার রাউন্ডে গেলে কতজন রোগীর কাছে যেতে কত সময় লাগে। কিন্তু অনেক রোগী চায় ডাকা মাত্রই তাদের কাছে যেতে হবে। কিন্তু যার কাছে আছি বা যে রোগীর কাছে আছি তিনি কী অপরাধ করলেন? মূলত ভুল বোঝার কারণে তারা অভিযোগগুলো করে।’

আরও পড়ুন:
নিজ হাসপাতালে চিকিৎসকের হয়রানিতে ১৬ কর্মচারীকে বদলি
হাসপাতালের অনিয়ম পাল্টায়নি এতটুকু
নিজ হাসপাতালে হয়রানির শিকার হয়ে বিস্মিত চিকিৎসক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
One arrested in case of murder of Jubo League leader

যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় মামলা, একজন গ্রেপ্তার

যুবলীগ নেতা হত্যার ঘটনায় মামলা, একজন গ্রেপ্তার নিহত আলাউদ্দিন। ছবি: নিউজবাংলা
চন্দ্রগঞ্জ থানার ওসি মো. মোসলেহ উদ্দিন বলেন, ‘মামলার সদর উপজেলার দত্তপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে জাবেদ হোসেন নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভোররাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। নিহতের ছেলে বাদী হয়ে ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হত্যা মামলা করেছে।’

লক্ষ্মীপুরে দুর্বৃত্তের গুলিতে যুবলীগ নেতা নিহতের ঘটনায় ২৯ জনকে আসামি করে থানায় মামলা হয়েছে। এ ছাড়া একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মামলায় জেলা যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এ কে এম ফরিদ উদ্দিনসহ ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়।

সদর উপজেলার বশিকপুরে দিঘিরপাড়ে শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে হামলার এ ঘটনা ঘটে। ওই দিন রাতেই নিহত আলাউদ্দিনের ছেলে আকাশ চন্দ্রগঞ্জ থানায় এ হত্যা মামলা করেন।

চন্দ্রগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোসলেহ উদ্দিন নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘মামলার সদর উপজেলার দত্তপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে জাবেদ হোসেন নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ভোররাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নিহতের ছেলে বাদী হয়ে ১৪ জনের নাম উল্লেখ করে আরও ১৫ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে হত্যা মামলা করেছে।

‘এ মামলায় জাবেদ হোসেন নামের একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে, অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। পাশাপাশি দ্রুত সময়ের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন দেয়া হবে।’

শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার বশিকপুর এলাকার দিঘিরপাড়ে কালভার্টের ওপর বসে মোবাইলে কথা বলছিলেন আলাউদ্দিন। হঠাৎ ৫-৬ জন মুখোশ পরে এসে তাকে লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করে পালিয়ে যায়।

এ সময় আলাউদ্দিন পাটোয়ারী গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হলে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক কমলা শীষ রায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এলাকায় চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের দুই গ্রুপের আধিপত্য বিস্তার, অভ্যন্তরীণ কোন্দল ও ভাগাভাগিকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে বলে ধারণা করছে পুলিশ ও স্থানীয়রা।

ওসি মোসলেহ উদ্দিন জানান, নিহত আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে চন্দ্রগঞ্জ ও সদর থানাসহ বিভিন্ন থানায় ২টি হত্যা মামলা, ডাকাতিসহ একাধিক মামলা রয়েছে। সে পুলিশের তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী এবং আরেক তালিকাভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসী বশিকপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জিহাদী বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড হিসেবে পরিচিত।

আরও পড়ুন:
টাকা লুট করতে বৃদ্ধ দম্পতিকে পরিকল্পিত হত্যা: এসপি
যুবককে ধাওয়া করে কুপিয়ে হত্যা
ছেলের রক্তাক্ত মরদেহ বাগানে খুঁজে পেলেন মা
‘চাচার প্রতি ক্ষোভে’ চাচাতো ভাইকে হত্যা, যুবক গ্রেপ্তার
ধর্ষণের পর হত্যায় ১১ বছর পর ৯ জনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
SSC question leak Two more teachers remanded

এসএসসির প্রশ্ন ফাঁস: রিমান্ডে আরও দুই শিক্ষক

এসএসসির প্রশ্ন ফাঁস: রিমান্ডে আরও দুই শিক্ষক রিমান্ড আদেশের পর আমিনুর ও জোবাইরকে আদালত থেকে নেয়া হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভূরুঙ্গামারী থানার ওসি আজাহার আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুই আসামির তিন দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলেও শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত তাদের দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে।’

কুড়িগ্রামে এসএসসির প্রশ্নপত্র ফাঁসের মামলায় গ্রেপ্তার ভূরুঙ্গামারী নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের বরখাস্ত আরও দুই শিক্ষককে দুই দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

রোববার সকালে কুড়িগ্রামের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক সুমন আলী এ আদেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের সহকারি আইনজীবী দিলরুবা আহমেদ শিখা নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আসামিরা হলেন ইসলাম শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষক জোবাইর রহমান ও ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুর রহমান রাসেল। এর আগে গত বুধবার মামলার প্রধান আসামি একই বিদ্যালয়ের বরখাস্ত প্রধান শিক্ষক ও কেন্দ্র সচিব লুৎফর রহমানকে তিন দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছিল আদালত।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ভূরুঙ্গামারী থানার ওসি আজাহার আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুই আসামির তিন দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলেও শুনানি শেষে বিজ্ঞ আদালত তাদের দুই দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে।

‘প্রধান আসামি লুৎফর রহমান তিন দিনের রিমান্ডে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন। সেগুলো যাচাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে।’

আইনজীবী দিলরুবা আহমেদ বলেন, ‘আসামিরা প্রশ্ন ফাঁস করে দেশ ও জাতির ক্ষতি করেছেন। তাদের সব্বোর্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

২০ সেপ্টেম্বর কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার নেহাল উদ্দিন পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে দিনাজপুর বোর্ডের ইংরেজি প্রথম পত্র ও দ্বিতীয় পত্র পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠে। এরপর ওই কেন্দ্রের সচিব লুৎফর রহমান জিজ্ঞাসাবাদে প্রশ্নপত্র ফাঁসের কথা স্বীকার করেন। একই সঙ্গে তার কাছে কয়েকদিনের আগাম প্রশ্নপত্র রয়েছে বলে জানান।

এদিন মধ্যরাতে ট্যাগ অফিসার ও কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আদম মালিক চৌধুরী মামলা করেন।

গ্রেপ্তার হন লুৎফর রহমান, ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক আমিনুর রহমান, ইসলাম শিক্ষা বিষয়ের শিক্ষক জোবাইর রহমান, কৃষি বিজ্ঞানের শিক্ষক হামিদুল ইসলাম, বাংলা বিষয়ের শিক্ষক সোহের চৌধুরী ও অফিস সহায়ক সুজন মিয়া। এই ঘটনার পর ওই বিদ্যালয়ের অফিস সহকারী মো. আবু হানিফ পলাতক রয়েছেন।

এদের সবাইকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেছে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটি।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনার দুই দিন পর কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুর রহমান বরখাস্ত হন।

আরও পড়ুন:
পরীক্ষার হলে ফেসবুক লাইভ, ২ এসএসসি পরীক্ষার্থী বহিষ্কার
‘ভূরুঙ্গামারীর ইউএনওর অবহেলায়’ এসএসসির প্রশ্ন ফাঁস
প্রশ্নফাঁস: কুড়িগ্রামের উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা বরখাস্ত
দিনাজপুর বোর্ডে স্থগিত পরীক্ষার সূচি পরিবর্তন ২ ঘণ্টা পরই
এসএসসি: দিনাজপুর বোর্ডে স্থগিত ৪ বিষয়ের সূচি ঘোষণা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Journalist Toab Khan was laid to rest at Banani graveyard on Monday

সাংবাদিক তোয়াব খানের অন্তিম শয্যা সোমবার বনানী কবরস্থানে

সাংবাদিক তোয়াব খানের অন্তিম শয্যা সোমবার বনানী কবরস্থানে সাংবাদিক তোয়াব খান। ফাইল ছবি
সাংবাদিক তোয়াব খানের ছোট ভাই ওবায়দুল কবির নিউজবাংলাকে জানান, তার একমাত্র মেয়ে তানিয়া খান রোববার বিকেলে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকায় পৌঁছাবেন। পরদিন বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে জানাজা শেষে সর্বজনশ্রদ্ধেয় এই সাংবাদিককে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে।

দেশের শীর্ষস্থানীয় সংবাদমাধ্যম নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম ও দৈনিক বাংলার সম্পাদক, একুশে পদকপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খানের দাফন হবে সোমবার। রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

বার্ধক্যজনিত জটিলতায় অসুস্থতার পর তোয়াব খানকে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শনিবার দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

তোয়াব খানের ছোট ভাই ওবায়দুল কবির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তার একমাত্র মেয়ে তানিয়া খান রোববার বিকেলে যুক্তরাষ্ট্র থেকে ঢাকায় পৌঁছাবেন।

‘তোয়াব খানের মরদেহ সোমবার সকাল ১০টায় তেজগাঁওয়ে নিউজবাংলা ও দৈনিক বাংলা কার্যালয়ে নেয়ার পর সেখানে প্রথম জানাজা হবে। এরপর বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কফিন রাখা হবে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। সেখানে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের ব্যবস্থাপনায় শ্রদ্ধা নিবেদন করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘তোয়াব খানের মরদেহ সোমবার বেলা ১টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত জাতীয় প্রেস ক্লাবে রাখা হবে। সেখানে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় প্রেস ক্লাব থেকে মরদেহ নেয়া হবে গুলশানে তার নিজ বাসভবনে।’

বাদ আসর গুলশান আজাদ মসজিদে জানাজা শেষে সর্বজনশ্রদ্ধেয় এই সাংবাদিককে দাফন করা হবে বনানী কবরস্থানে।

নিউজবাংলার সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি চৌধুরী নাফিজ সরাফাত ও উপদেষ্টা সম্পাদক মো. নজরুল ইসলাম মজুমদার সাংবাদিক তোয়াব খানের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন। সম্পাদকের মৃত্যুতে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের দ্বিতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সব অনুষ্ঠান বাতিল করা হয়েছে।

১৯৩৪ সালের ২৪ এপ্রিল সাতক্ষীরা জেলার রসুলপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন তোয়াব খান। সাংবাদিক হিসেবে সুদীর্ঘ ও বর্ণাঢ্য কর্মজীবন রয়েছে তার।

২০১৬ সালে একুশে পদক পান তোয়াব খান। একই বছর তাকে সম্মানীত ফেলো নির্বাচন করে বাংলা একাডেমি।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেস সেক্রেটারি ছিলেন তোয়াব খান। পরে রাষ্ট্রপতি এইচ এম এরশাদ এবং প্রথম অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের প্রধান উপদেষ্টা সাহাবুদ্দীন আহমদের প্রেস সচিবের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

ছাত্রজীবন থেকেই তোয়াব খান বিভিন্ন পত্রিকায় সমকালীন ইস্যু নিয়ে লেখালেখি করতেন। ১৯৫৩ সালে সাপ্তাহিক জনতার মাধ্যমে তার সাংবাদিকতা জীবনের শুরু। ১৯৫৫ সালে তিনি যোগ দেন দৈনিক সংবাদে।

১৯৬১ সালে দৈনিক সংবাদের বার্তা সম্পাদক হন। ১৯৬৪ সালে তিনি যোগ দেন দৈনিক পাকিস্তানে।

মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রে শব্দসৈনিকের ভূমিকা পালন করেন তোয়াব খান। সে সময় তার আকর্ষণীয় উপস্থাপনায় নিয়মিত প্রচার হয় ‘পিণ্ডির প্রলাপ’ নামের অনুষ্ঠান।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর দৈনিক পাকিস্তান থেকে বদলে যাওয়া দৈনিক বাংলার প্রথম সম্পাদক ছিলেন তোয়াব খান। ১৯৭২ সালের ১৪ জানুয়ারি তিনি এই দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

১৯৭৩ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রেস সচিব ছিলেন তোয়াব খান। দেশের প্রধান তথ্য কর্মকর্তা ও প্রেস ইনস্টিটিউট অফ বাংলাদেশের মহাপরিচালকের দায়িত্বও পালন করেন যশস্বী এ সাংবাদিক।

নিউজবাংলা ও দৈনিক বাংলার সম্পাদক হিসেবে যোগ দেয়ার আগে সর্বশেষ তিনি দৈনিক জনকণ্ঠের উপদেষ্টা সম্পাদক ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খানের প্রয়াণে বিশিষ্টজনদের শোক
স্বীয় কর্মে স্মরণীয় থাকবেন তোয়াব খান: প্রধানমন্ত্রী
বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খানের প্রয়াণ
নতুন রূপে আসছে দৈনিক বাংলা, সম্পাদক তোয়াব খান
গুরুতর অসুস্থ সাংবাদিক তোয়াব খান

মন্তব্য

p
উপরে