× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Sheikh Hasinas tribute at Mahatma Gandhis tomb
hear-news
player
print-icon

মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা

মহাত্মা-গান্ধীর-সমাধিতে-শেখ-হাসিনার-শ্রদ্ধা
মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: নিউজবাংলা
পুষ্পস্তবক অর্পণের পর মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিছুক্ষণ নিরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। পরে পরিদর্শন বইতে সই করেন প্রধানমন্ত্রী।

ভারতের জাতির পিতা মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন সফররত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১০টায় রাজঘাটে ভারত বর্ষের স্বাধীনতা এবং নাগরিক অধিকার আন্দোলনের অন্যতম নেতা মহাত্মা গান্ধীকে শ্রদ্ধা জানাতে তার সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা।

পুষ্পস্তবক অর্পণের পর মহাত্মা গান্ধীর স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিছুক্ষণ নিরবে দাঁড়িয়ে থাকেন। পরে পরিদর্শন বইতে সই করেন প্রধানমন্ত্রী।

মহাত্মা গান্ধীর সমাধিতে শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে সোমবার ভারতের রাজধানী নয়াদিল্লি এসে পৌঁছান। তার এই সফরের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার বাণিজ্যসংক্রান্ত চুক্তি ছাড়াও কয়েকটি সমঝোতা স্মারক সই হওয়ার কথা রয়েছে, তবে চুক্তি ও সমঝোতাসংক্রান্ত নির্ধারিত এজেন্ডা যাই থাক, এর বাইরেও অনেক বিষয় আলোচনা হবে।

কূটনৈতিক একটি সূত্র জানায়, আজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির যে বৈঠক হওয়ার কথা, তা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ।

২০১৯ সালের অক্টোবরে দিল্লি সফরের পর গত সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের অধিবেশনে গিয়ে সেখানে একান্ত বৈঠক করেছিলেন শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি।

আরও পড়ুন:
‘মমতা বোনের মতো, যখন চাইব দেখা করব’
ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে স্বাগত জানালেন মোদি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
There is no CCTV camera in the village hall

গ্রামের মণ্ডপে বসছে না সিসিটিভি ক্যামেরা

গ্রামের মণ্ডপে বসছে না সিসিটিভি ক্যামেরা দুর্গাপূজার একটি মণ্ডপ। ছবি: নিউজবাংলা
পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মণ্ডপে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আমরা সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপনকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। কিন্তু আর্থিক সংগতি না থাকায় গ্রামাঞ্চলে অনেক মণ্ডপেই তা হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে রাষ্ট্র ব্যবস্থা নিলেই কেবল সম্ভব হবে।’

রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে এবার ৩২ হাজার ১৬৮টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মণ্ডপগুলোতে জোরদার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে গত বছরের মতো এবারও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সার্বক্ষণিক নজরদারির স্বার্থে মণ্ডপকেন্দ্রিক সিসিটিভি ক্যামেরাও বসছে। তবে গ্রামের মণ্ডপগুলোতে এই নিরাপত্তা সুবিধা থাকছে না।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে এমনটা জানিয়ে বলা হয়েছে, শহরকেন্দ্রিক মন্দিরগুলোতে সিসিটিভি ক্যামেরাসহ সব ধরনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে। তবে আর্থিক সীমাবদ্ধতার কারণে গ্রামাঞ্চলের পূজামণ্ডপগুলোতে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো সম্ভব হবে না।

পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. চন্দ্রনাথ পোদ্দার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের তো আর আশঙ্কা করলে চলবে না। আমরা আশাবাদী। সরকার আন্তরিক, প্রশাসনও আন্তরিক। আমাদের দিক থেকে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি আছে।

‘সার্বিক নিরাপত্তা বিষয়ে আমরা সংশ্লিষ্ট সবাইকে নির্দেশনা দিয়েছি। আর সিসিটিভি ক্যামেরার ক্ষেত্রে আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছি। সব মণ্ডপে এই নজরদারির ব্যবস্থাটা রাখতে বলেছি। এটা সবাই যে পারবে তা না। কারণ গ্রামাঞ্চলে সবার আর্থিক সংগতি থাকে না।

গ্রামের মণ্ডপে বসছে না সিসিটিভি ক্যামেরা

ঝালকাঠিতে একটি পূজামণ্ডপ। ছবি: নিউজবাংলা

‘৩২ হাজারের বেশি মণ্ডপে এবার পূজা হচ্ছে। সব মণ্ডপে এটা থাকলে ভালো। কিন্তু গ্রামাঞ্চলে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করাটা সংশ্লিষ্ট আয়োজকদের জন্য কঠিন হবে।’

পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে সব জায়গায় সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন সম্ভব হবে না উল্লেখ করে চন্দ্রনাথ পোদ্দার বলেন, ‘এক্ষেত্রে রাষ্ট্র ব্যবস্থা নিতে পারলে তবেই সম্ভব হবে। এটা ডিসি, এসপি বা উপজেলা থেকে বাস্তবায়ন হলে ভালো হবে।’

এর আগে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জে এল ভৌমিক বলেন, ‘সারা দেশে ৩২ হাজার ১৬৮টি পূজামণ্ডপের সুরক্ষা দেয়াটা খুব কঠিন। তাই আমরা এ বছর প্রতিটি মন্দিরে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করছি, যারা রাতেও মণ্ডপ পাহারা দেবে।’

পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, ‘সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হলেও যে হামলা হবে না এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। প্রতিবছর ধর্মীয় এই উৎসব শুরু হওয়ার আগে এক ধরনের সতর্কতা জারি করা হয়। কিন্তু এটি তো কাম্য নয়। বাস্তবতা হলো, যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করবে তারা সিসিটিভি ক্যামেরা নষ্ট করেও তা করতে পারে।’

গ্রামের মণ্ডপে বসছে না সিসিটিভি ক্যামেরা

দুর্গা প্রতিমা তৈরি করেন দিনাজপুরের কারিগররা। ছবি: নিউজবাংলা

সরকারের ওপর আশা রেখে পূজার কার্যক্রম এগুচ্ছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আমাদের প্রত্যাশা, এবার পূজা আয়োজন সুন্দর ও আনন্দময় হবে।’

প্রসঙ্গত, গত বছর সারাদেশে ব্যাপক নিরাপত্তা প্রস্তুতি নিয়ে শারদীয় উৎসব শুরু হয়। সার্বিক পরিস্থিতিও ছিল সন্তোষজনক। এর মধ্যে কুমিল্লায় একটি মন্দিরে হনুমান মূর্তির পায়ের কাছে পরিবত্র কোরআন শরীফ রাখার মতো একটি ঘটনা কেন্দ্র করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। পরবর্তীতে তা প্রাণঘাতী অবস্থায় রূপ নেয়। নিহত হন পাঁচজন। ওই সময়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনাও ঘটে। হুমকিতে পড়ে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি।

জেলা শহরগুলোর মণ্ডপে নিরাপত্তা প্রস্তুতি

নিউজবাংলা সারা দেশে গ্রামের বেশকিছু মণ্ডপের প্রস্তুতি পর্যবেক্ষণ করে দেখেছে যে আয়োজকদের পক্ষ থেকে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। অনেকে এই বিষয়ে জানেও না। এক্ষেত্রে আয়োজকরা আর্থিক অসঙ্গতির কথা তুলে ধরেছেন।

শহরকেন্দ্রিক মন্দিরগুলোতে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো আছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন জেলার পূজা উদযাপন পরিষদ।

সিলেটে এবার ৬২১টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে। এর মধ্যে মহানগরে ১৫৫টি ও মহানগরের বাইরে জেলায় ৪৫৬টি। গত বছর সিলেট জেলায় মোট ৬০৫টি মণ্ডপে পূজার আয়োজন করা হয়েছিল।

মহানগর পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত বলেন, ‘সব মণ্ডপে এবার সিসি ক্যামেরা লাগাতে বলা হয়েছে। কিন্তু অনেকের এই সামর্থ্য নেই। তবে যাদের সামর্থ্য আছে তারা ক্যামেরা লাগাবে। এছাড়া মণ্ডপগুলোতে সার্বক্ষণিক জেনারেটরের ব্যবস্থা থাকবে।’

মণ্ডপের নিরাপত্তায় সার্বক্ষণিক পুলিশ ও আনসার থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদেরও সতর্ক থাকতে হবে। গতবারের অপ্রীতিকর ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা বুঝেছি, মণ্ডপের নিরাপত্তায় আমরা নিজেরাও উদাসীন ছিলাম। তাই মণ্ডপের সার্বক্ষণিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এবার আয়োজকদের সংঘবদ্ধ থাকতে বলা হয়েছে।

‘গতবারের ঘটনার কারণে কিছুটা উদ্বেগ আছে। তবে করোনা বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ায় এবার আরও উৎসবমুখর পরিবেশে পূজা উদযাপন হবে বলে আশা করছি।

মণ্ডপের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে সন্তুষ্ট চট্টগ্রাম জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ। সংগঠনটির সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত বলেন, ‘চট্টগ্রাম জেলায় ২ হাজার ৬২টি ও মহানগরে ২৮২টি মণ্ডপে এবার দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আমরা প্রতিটি মণ্ডপে সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন, মণ্ডপে পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক আর আনসার রাখার কথা বলেছি। সরকার সেসব বাস্তবায়ন করছে।’

রংপুর জেলা পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক ধীমান ভট্টাচার্য নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রংপুর জেলায় এবার পূজামণ্ডপ ৭৭৫টি, আর মহানগরে ১৫৮টি। আমরা প্রশাসনের শীর্ষ পর্যায়ে বৈঠক করেছি। তাদের পক্ষ থেকেও সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। সর্বোচ্চ গোয়েন্দা নজরদারি রয়েছে, যেটা এর আগে কখনও হয়নি। আমি মনে করি আমরা নির্বিঘ্নে উৎসব করতে পারব।’

ব‌রিশাল জেলা পূজা উদযাপন প‌রিষ‌দের সভাপ‌তি মানিক মুখার্জী কুণ্ডু ব‌লেন, ‘ব‌রিশাল জেলায় ৬০০ ও মহানগ‌রে ৪৫টি মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনু‌ষ্ঠিত হবে। সব ম‌ণ্ডপেই প্রস্তু‌তি সম্পন্ন হ‌য়ে‌ছে। কোনো ধর‌নের অপ্রী‌তিকর প‌রি‌স্থি‌তি এড়া‌তে সব মন্ড‌পে সি‌সিটিভি ক‌্যা‌মেরা স্থাপ‌নের নি‌র্দেশ দেয়া হ‌য়ে‌ছে।’

মহানগর পূজা উদযাপন প‌রিষ‌দের সাধারণ সম্পাদক চঞ্চল দাস পাপ্পা ব‌লেন, ‘নগরীর বর্ডার এলাকাগু‌লো‌তে যে পূজা মণ্ডপগু‌লো র‌য়ে‌ছে সেগু‌লো‌তে আমা‌দের বি‌শেষ নজরদা‌রি র‌য়ে‌ছে‌। ম‌ন্দির ক‌মি‌টিগু‌লোর নেতা‌দের সতর্ক থাক‌তে বলা হ‌য়ে‌ছে।’

পি‌রোজপু‌রের মঠবা‌ড়িয়ার রাজ ম‌ন্দি‌রে দুর্গাপূজার আ‌য়োজক ডা. সুদীপ কুমার হালদার ব‌লেন, ‘পুলিশ ও প্রশাস‌নের সদস‌্যরা প্রতি‌নিয়ত মণ্ডপ প্রাঙ্গ‌ণে আস‌ছেন। কো‌নো ধর‌নের অপ্রী‌তিকর পরিস্থিতি এড়া‌তে আমরাও সতর্ক অবস্থা‌নে র‌য়ে‌ছি। ইতোমধ্যে ৫০‌টি সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হ‌য়ে‌ছে।’

বছর ঘুরে আবার এসেছে শারদীয় দুর্গোৎসব। ১ অক্টোবর শুরু হচ্ছে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এই ধর্মীয় উৎসব। এর আগে রোববার মহালয়ার মধ্য দিয়ে দেবী দুর্গার আগমনী বার্তা ধ্বনিত হয়েছে। আর ১ অক্টোবর ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দেবীকে আমন্ত্রণ জানানোর মাধ্যমে শুরু হবে দুর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা। ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে দেবী বিসর্জনের মধ্য দিয়ে তা শেষ হবে।

[প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন সিলেট, চট্টগ্রাম, বরিশাল ও রংপুর প্রতিনিধি]

আরও পড়ুন:
দুর্গাপূজা ঘিরে চট্টগ্রামের ডিসির হুঁশিয়ারি
পূজায় এবার যেতে হবে না ‘বাবার বাড়ি’
পূজা উদযাপন পরিষদের ১৪ দফা
পূজার গান ‘দেখা দাও মা’
দেবীপক্ষের সূচনা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death by water rabies is no more

‘জলাতঙ্কে মৃত্যু আর নয়’

‘জলাতঙ্কে মৃত্যু আর নয়’ জলাতঙ্ক প্রাচীনতম সংক্রামক রোগের একটি। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
জলাতঙ্ক শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। যদি কোন প্রাণী বিশেষ করে কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজী, শিয়াল কামড় বা আঁচড় দেয় সঙ্গে সঙ্গে সাবান পানি দিয়ে আক্রান্ত স্থান ১৫ মিনিট ধুতে হবে। এরপর ঠিক সময়ে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা নিলে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত হচ্ছে আজ। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় ‘জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সঙ্গে সমন্বয়’। এতে জলাতঙ্ক, মৃত্যু ও সমন্বয় এ তিনটি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

জলাতঙ্ক প্রাচীনতম সংক্রামক রোগের একটি। প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে পানিভীতি, আলোভীতি, বায়ুভীতি হলেও এর শেষ পরিণতি মৃত্যু। তবে এ রোগ শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। যদি কোন প্রাণী বিশেষ করে কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজী, শিয়াল কামড় বা আঁচড় দেয় সঙ্গে সঙ্গে সাবান পানি দিয়ে আক্রান্ত স্থান ১৫ মিনিট ধুতে হবে। এরপর ঠিক সময়ে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা নিলে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। তাই প্রয়োজন জনসচেতনতা বৃদ্ধি, সামাজিক আচরণ ও দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। বাংলাদেশ সরকার, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সংগঠনের পারস্পরিক সমন্বয়ের ভিত্তিতে মৃত্যুর হার শূন্যে আনা সম্ভব।

জলাতঙ্কের টিকা আবিষ্কারক বিজ্ঞানী লুই পাস্তুর ১৮৯৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মারা যান। তার প্রয়াণ দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০০৭ সাল থেকে পৃথিবীব্যাপি বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

বাংলাদেশ সরকারের নানাবিধ স্বাস্থ্য উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের ফলে জলাতঙ্ক রোগের সংক্রমণ কমে এসেছে। জুনোটিক ডিডিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম, রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর মাধ্যমে সারাদেশে জেলা ও উপজেলা হাসপাতাল পর্যায়ে ৩০০টির বেশি জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে।

এ ছাড়াও রাজধানীর মহাখালীতে সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল ও ৫টি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং কামরাঙ্গীরচর ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে জলাতঙ্কের আধুনিক চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

এ সব কেন্দ্রগুলোতে কুকুর বা অন্যান্য প্রাণির কামড়/আঁচড়ের আধুনিক চিকিৎসার পাশাপাশি বিনা মূল্যে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা দেয়া হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে প্রতি বছর প্রায় তিন লাখের বেশি জলাতঙ্ক সংক্রমণকারী প্রাণির কামড়/আঁচড়ের রোগীকে বিনা মূল্যে জলাতঙ্কের টিকা দেয়া হচ্ছে। এর ফলে জলাতঙ্কে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেকাংশে কমে যাচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বাংলাদেশ সরকারের নীতিমালা অনুসারে বর্তমানে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের পূর্ণ ডোজ (তিনটি ০, ৩ ও ৭ দিনে) এক সপ্তাহে দেয়ার ফলে রোগীদের অর্থ ও সময় সাশ্রয় হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সকল সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হয়েছে। যা দক্ষিণ এশিয়ায় জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক।

এর পাশাপাশি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর প্রাণিদেহে জলাতঙ্কের জীবাণু শনাক্তের কাজ করে চলেছে। এতে করে নির্দিষ্ট স্থানে এ রোগের উপস্থিতি ও প্রাদুর্ভাব নির্ণয় করে মানুষ ও প্রাণিদেহে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

বর্তমানে বৈজ্ঞানিক ভিত্তির ওপর নির্ভর করে জলাতঙ্কের প্রধান উৎস কুকুরের মধ্যে ব্যাপকহারে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। ব্যাপকহারে কুকুরকে টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রমের আওতায় আনা হয়েছে। সারাদেশে ইতিমধ্যে ৬৪টি জেলায় প্রথম রাউন্ড, ১৭টি জেলায় দ্বিতীয় রাউন্ড এবং ৬টি জেলায় তৃতীয় রাউন্ড ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে কুকুরকে প্রায় ২২ লাখ ৫১ হাজার ডোজ জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা দেয়া হয়েছে। যা মানুষ ও প্রাণিদেহে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম সামাজিক জনসচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে লিফলেট, সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন, ফেস্টুন, বিভিন্ন দিবস পালন, ক্রোড়পত্র প্রকাশ, স্কুল প্রোগ্রাম, জনবার্তাসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরে কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস ২০২২ কে সামনে রেখে দেশজুড়ে আলোচনা সভা, র‌্যালি, সেমিনারসহ নানাবিধ কার্যক্রম আয়োজন করা হয়েছে।

‘মুজিববর্ষে স্বাস্থ্য খাত, এগিয়ে যাবে অনেক ধাপ’ শ্লোগানকে সামনে রেখে জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম সব যুগোপযোগী কার্যক্রমের মাধ্যমে জলাতঙ্ক নির্মূলে এগিয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
পাগলা কুকুরে ধরাশায়ী ১৫ নারী-কিশোর
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যায় মাসুমের শাস্তি
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যায় অভিযুক্তের শাস্তি দাবি
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Uranium import to Rooppur next September

রূপপুরে ইউরেনিয়াম আমদানি আগামী সেপ্টেম্বরে

রূপপুরে ইউরেনিয়াম আমদানি আগামী সেপ্টেম্বরে পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। ফাইল ছবি
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক শৌকত আকবর বলেন, ‘রাশিয়ার প্রস্তাব ছিল ২০২৩ সালের অক্টোবরের মধ্যে রূপপুরের জ্বালানি সরবরাহ করা। তার জন্য এই সময়ের মধ্যে অ্যাকশন প্ল্যান, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, জনবল, নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া তৈরি করার কথা বলেছে তার। কিন্তু আমরা বলেছি, অক্টোবর না, সেপ্টেম্বরের মধ্যে করলে ভালো। সেপ্টেম্বরের মধ্যে যাতে কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়, তার জন্য রোডম্যাপ তৈরি করা হয়েছে।’

দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র রূপপুর থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে মূল জ্বালানি ইউরেনিয়াম আমদানি শুরু হচ্ছে আগামী সেপ্টেম্বরে। রাশিয়া থেকে আমদানি করা হবে সেই জ্বালানি। আর তার নিরাপত্তা, পরিবহন ও ব্যবস্থাপনা বিষয়ক নানা অবকাঠামো তৈরির ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে বাংলাদেশ। যার পুরোটাই হবে আন্তর্জাতিক আণবিক শক্তি সংস্থার (আইএইএ) নির্দেশনা মেনে।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য জানিয়েছেন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক শৌকত আকবর।

অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ভিয়েনা ইন্টারন্যাশনাল আইএইএ সদর দপ্তরে সংস্থাটির মহাপরিচালক ও রূপপুরের বিনিয়োগকারী রাশিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত্ব প্রতিষ্ঠান রোসাটমের মহাপরিচালকের সঙ্গে পৃথক বৈঠক করে ভিয়েনা সফররত বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল।

বলা হচ্ছে, ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বরের মধ্যে যদি রূপপুরের জ্বালানি আসা শুরু হয় তাহলে ওই কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে যাবে দেশ।

রূপপুরে ইউরেনিয়াম আমদানি আগামী সেপ্টেম্বরে

অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় নিউজবাংলার বিশেষ প্রতিনিধি তানজীর মেহেদীর সঙ্গে কথা বলেন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রকল্প পরিচালক শৌকত আকবর। ছবি: নিউজবাংলা

শৌকত আকবর বলেন, ‘রাশিয়ার প্রস্তাব ছিল ২০২৩ সালের অক্টোবরের মধ্যে রূপপুরের জ্বালানি সরবরাহ করা। তার জন্য এই সময়ের মধ্যে অ্যাকশন প্ল্যান, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো, জনবল, নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়া তৈরি করার কথা বলেছে তার।

‘কিন্তু আমরা বলেছি, অক্টোবর না, সেপ্টেম্বরের মধ্যে করলে ভালো। সেপ্টেম্বরের মধ্যে যাতে কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়, তার জন্য রোডম্যাপ তৈরি করা হয়েছে।’

তবে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের জ্বালানি হিসেবে ইউরেনিয়াম আমদানি, পরিবহন ও রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষেত্রে মেনে চলতে হবে নানা নিয়ম নীতি, তৈরি করতে হবে অবকাঠামো। আর সেটা তৈরি করতে হবে আইএইএ-এর দেয়া নীতিমালা অনুযায়ী। অবশ্য পরমাণুর শান্তিপূর্ণ অবস্থান নিশ্চিতে নিজের অবস্থান ব্যক্ত করা বাংলাদেশও মেনে চলতে চায় আইএইএ-এর নীতিমালা।

শৌকত আকবর বলেন, ‘জ্বালানি আমদানি ও পরিবহনের ক্ষেত্রে আইএইএ-এর প্রজ্ঞাপন লাগবে। রাশান ফেডারেশনের যে রপ্তানি নীতি, তার আলোকে অনুমতি লাগবে। আমাদের লাইসেন্স লাগবে- সংরক্ষণ, আমদানি ও পরিবহনের জন্য। ফলে এটি একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া। নিয়ন্ত্রণ অবকাঠামো, সাংগঠনিক অবকাঠামো, দক্ষতা ও জনবল তৈরি করতে হয়।’

রূপপুরে ইউরেনিয়াম আমদানি আগামী সেপ্টেম্বরে

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। ফাইল ছবি

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সব কিছু সম্পন্ন করার বিষয়ে আশাবাদী প্রকল্প পরিচালক। তিনি বলেন, ‘জ্বালানি পরিবহনে যে আনুষাঙ্গিক অবকাঠামো সেগুলো ২০২৩ সালের আগস্ট মাসের মধ্যে সম্পন্ন করব, যাতে সেপ্টেম্বরে পরিবহনের ক্ষেত্রে দেশীয় ও আন্তর্জাতিক আইন লংঘন এবং নিরাপত্তাজনিত কোনো সমস্যা তৈরি না হয়।’

জ্বালানি আমদানির ক্ষেত্রে সবগুলো শর্তপূরণে বাংলাদেশ কাজ শুরু করেছে বলেও জানান তিনি।

শৌকত আকবর বলেন, ‘আমরা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের নেতৃত্বে একটি কো-অরডিনেশন কমিটি গঠন করেছি। এই পরিবহনের সঙ্গে দেশের অনেক মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তর সম্পৃক্ত থাকবে। নিরাপত্তার জন্য সেনাবাহিনী থেকে শুরু করে গোয়েন্দা তৎপরতা থাকবে।

‘পরিবহনে প্রাথমিক ও বিকল্প রুট নিশ্চিত করতে হবে। জ্বালানি পরিবহনের সময় গাড়ির গতিসীমা ও রাস্তার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। সেখানে জরুরি ব্যবস্থাপনা দল থাকতে হবে। সেখানে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও সিভিল ডিফেন্স থাকবে। আর যারা স্টেক হোল্ডার তাদের নিয়েও সমন্বয় টিম গঠন করা হয়েছে। বিভিন্ন টিমের সঙ্গে যোগাযোগ তৈরিতে যে প্রসিডিউরাল ডকুমেন্টস সেটাও তৈরি হয়েছে।’

রূপপুরের জ্বালানি আমদানি দেশের জন্য আরেকটি মাইলফলক বলে দাবি করেন দেশের বৃহৎ এই প্রকল্পটির প্রকল্প পরিচালক।

তিনি বলেন, ‘গ্লোবাল নিউক্লিয়ার ক্লাবে প্র্যাকটিক্যাল স্টেপ, আমরা কনস্ট্রাকশনের মধ্য দিয়ে একবার গেলাম, আরেকবার জ্বালানি আমদানির মধ্য দিয়ে একটা অপারেটিং কান্ট্রি স্ট্যাটাসে উন্নীত হব।’

২০২৩ সাল থেকে ‘প্রি-অপরাশেনাল কমিশনিং’ বা পরীক্ষামূলক উৎপাদনে যেতে চায় কর্তৃপক্ষ। তবে এর জন্য বেশকিছু বিষয় সম্পন্ন করতে হবে বলেও জানান তিনি।

শৌকত আকবর বলেনম, ‘অপারেশনাল কমিশনিংয়ের সঙ্গে আমাদের অনেকগুলো অবকাঠামো জড়িত, ফিজিক্যাল প্রোডাকশন জড়িত, অফসাইট টেলিকমিউনিকেশন জড়িত, জরুরি ব্যবস্থাপনা অবকাঠামো জড়িত।’

এদিকে আইএইএ-এর দেয়া দিকনির্দেশনা নিয়েও নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন রূপপুরের প্রকল্প পরিচালক।

তিনি বলেন, ‘নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্রোগ্রামের জন্য মূলত আইএইএ যে দিকনির্দেশনা দিয়েছে তা হচ্ছে নিউক্লিয়ার গভার্নেন্স। এর মধ্যে আছে: নিউক্লিয়ার সেফটি, নিউক্লিয়ার সিকিউরিটি, সেইফগার্ড অফ নিউক্লিয়ার মেটারিয়াল ও সেফটি ডিউরিং ইমার্জেন্সি সিচুয়েশন।

‘আর এসব ক্ষেত্রে আইএইএ জানতে চায়, আমাদের দেশে দক্ষ জনবল ও উপযুক্ত অবকাঠামো নিশ্চিত করা হয়েছে কিনা। আর এসবের জন্য আইএইএ-এর সঙ্গে আমাদের টাইম বাউন্ড কার্যক্রম আছে। সেগুলোকে আমরা বলছি ইন্টিগ্রেটেড ওয়ার্ক প্ল্যান। এগুলো ২০২২ ও ২০২৩ সালের জন্য নির্ধারিত করেছি।’

রূপপুরের জন্য জ্বালানি আমদানি করার আগে জাতীয় পর্যায়ে কি ধরনের অবকাঠামো প্রয়োজন সেটাও পরিমাপ করবে এই সংস্থাটি।

শৌকত আকবর বলেন, ‘তাদের সঙ্গে বসে পারমাণবিক নিরাপত্তা ইস্যুতে কি কি দূর্বলতা আছে তা কাটিয়ে উঠা, তাদের সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করা একটি বড় কাজ। আইএইএ-এর নির্দেশনা অনুযায়ী বাংলাদেশে যে অবকাঠামো আমরা তৈরি করেছি তা অবহিত করব, এবং সংস্থাটির ইতিবাচক মূল্যায়ন নিয়েই আমরা বাকি পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করব।’

বিদ্যুৎকেন্দ্রটির বাস্তবায়নে দুইটি প্রিপারেটরি মিশন সম্পন্ন হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আগামী মাসে একটি মিশন করা হবে। যারা পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রটি নিয়ন্ত্রণ করবে তাদের প্রস্তুতি কতোটা সম্পন্ন হয়েছে তার একটি অ্যাসেসমেন্টে তারা যাবে। যা আগামী ২৫ থেকে ২৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। আর নভেম্বর-ডিসেম্বরে কম্প্রিহেনসিভ আইআরএস মিশন, যেটা আমাদের দেশের রেগুলেটরি বডির সক্ষমতা যাচাই পরীক্ষা নিরীক্ষা করবে।’

তিনি বলেন, ‘মূল বিষয় হলো আমাদের যে অবকাঠামো আমরা তৈরি করেছি বা করছি, তা আইএইএ-এর নির্দেশনা অনুযায়ী বাস্তবায়ন হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখবে। সেখানে যদি কোনো কমতি থাকে সেটা চিহ্নিত করা এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সেগুলো পূরণে কর্মপন্থা ঠিক করা। এসব বিষয় নিয়ে সংস্থাটির মহাপরিচালকের সঙ্গে কথা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
অক্টোবরে রূপপুরে বসছে দ্বিতীয় ইউনিটের রিঅ্যাক্টর প্রেসার ভেসেল
রূপপুরের জন্য রাশিয়া থেকে এলো ১৪২১ টন যন্ত্রপাতি
রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র: হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে ধোঁয়াশা
রূপপুর প্রকল্প এলাকায় রুশ কর্মীর মরদেহ
রূপপুর, মাতারবাড়ী, বিমানবন্দর, পদ্মা সেতুতে বড় বরাদ্দ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Do what you do when you open your eyes

চোখ উঠলে যা করবেন, যা করতে মানা

চোখ উঠলে যা করবেন, যা করতে মানা ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া দুই কারণেই হয়ে থাকে চোখ ওঠা রোগ। ছবি: সংগৃহীত
‘এটি যেহেতু বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় তাই অতিরিক্ত ধুলাবালির সংস্পর্শে গেলে যে কোনো সময় হতে পারে। তাই বাইরে গেলে সানগ্লাস ব্যবহার করতে হবে। যতটা সম্ভব ধুলাবালি এড়িয়ে চলতে হবে। ধুলাবালি থেকে শুধু চোখ ওঠা নয়, এলার্জিজনিত নানা ধরনের রোগ হতে পারে।’

কিছুদিন ধরেই চোখ ওঠা রোগের প্রকোপ দেখা যাচ্ছে। ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া দুই কারণেই হয়ে থাকে রোগটি।

অনেক সময় ঘুম থেকে উঠলে চোখে একটা পড়েছে এমন অনুভূতি, চুলকানো এবং জ্বালাপোড়া করে। আবার সবকিছু ঘোলাটে দেখা, পানি পড়া, চোখের কোণায় ময়লাও জমে। কোনো ব্যক্তির এমন হলে চোখ ওঠা রোগে আক্রান্ত বলা হয়।

রাজধানীর মিরপুরের ববি হাসানের কলেজ পড়ুয়া মেয়ে রুমানা হাসান। দুই দিন ধরে চোখ জ্বালাপোড়া করছে। এক চোখে ময়লাও আসছে। গত বছরও এ সময় এমন হয়েছিল রুমানার।

ডাক্তারের পরামর্শে রুমানা এখন কলেজ, টিউশনি কোথাও যাচ্ছেন না। একটি চোখের ড্রপ এবং ব্যথানাশক ওষুধ দিয়েছেন চিকিৎসক।

বোনের পাশাপাশি চোখে একই লক্ষ্মণ দেখা দিয়েছে ববির ছেলে মাহিন হাসানের। ছয় বছর বয়সী ছেলেটি বেশ কান্নাকাটি করছে।

ববি বলেন, ‘ডাক্তার ঘরেই চিকিৎসা নিতে বলেছেন। চোখ ওঠা রোগ ৭ দিনেই ভালো হয়ে যায় বলে জানিয়ে দুশ্চিন্তা না করতে বলেছেন তিনি।’

চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, বছরের এই সময়টায় চোখ উঠা একটি সাধারণ সমস্যা। এবারও রাজধানীর বিভিন্ন এলাকাতে রোগটির প্রকোপ দেখা দিয়েছে। চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউট বা হাসপাতালের চক্ষু বিভাগে তাই বেড়েছে ভিড়।

কী করতে হবে, যা করা যাবে না

চক্ষু বিশেষজ্ঞ ইসমাইল হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চোখ ওঠা রোগ আমরা ছোটবেলা থেকেই দেখে আসছি। বাচ্চাদের মধ্যে আগে বেশি দেখা যেত, তবে এখন সব বয়সেরই হচ্ছে। জনসংখ্যা বেড়েছে, সাথে কর্মজীবী। তাই ধুলাবালির সংস্পর্শে আসার সংখ্যাও বেড়েছে।

তবে এই রোগ নিয়ে উদ্বেগের কিছু নেই। কিছুদিন ঘরে থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিলেই ঠিক হয়ে যায়।’

আরেক চিকিৎসক তানজিনা রহমান বলেন, ‘এই রোগটি ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া দুই কারণেই হতে পারে। যাদের চোখ জ্বালাপোড়ার সঙ্গে ময়লা আসে তাহলে সেটা ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন। একে বলে ব্যাকটেরিয়াল কন্‌জাঙ্কটিভাইটিস। আর শুধু ভাইরাল ইনফেকশন হলে চোখ জ্বালাপোড়া করে এবং লাল হলে হয়ে যায়। এক্ষেত্রে চোখে হাত দেয়া যাবে না। এলার্জি হয় এমন খাবার এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।’

মেডিসিন বিশেষজ্ঞ জিয়াউল কবির বলেন, ‘এটি যেহেতু বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় তাই অতিরিক্ত ধুলাবালির সংস্পর্শে গেলে যে কোনো সময় হতে পারে। তাই বাইরে গেলে সানগ্লাস ব্যবহার করতে হবে। যতটা সম্ভব ধুলাবালি এড়িয়ে চলতে হবে। ধুলাবালি থেকে শুধু চোখ ওঠা নয়, এলার্জিজনিত নানা ধরনের রোগ হতে পারে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একজন মেডিক্যাল অফিসার বলেন, ‘যেহেতু রোগটি ছোঁয়াচে, তাই যতটা সম্ভব আইসোলেশনে থাকা ভালো। ছোঁয়াচে এবং বাতাসের মাধ্যমে ছড়ায় বলে লোকজন থেকে দূরে থাকতে বলা হয়।

‘সানগ্লাস পরে থাকতে হবে। চুলকানি হলে রোগী ঠান্ডা এবং এলার্জিজনিত রোগের ওষুধ খেতে পারেন। চোখের কিছু ড্রপ রয়েছে, আমরা সেগুলো সাজেস্ট করি। তবে অনেকেই বার বার চোখে হাত দেয় বা চুলকায়। এতে চোখের ক্ষতি হতে পারে। তবে ভয়ের তেমন কোনো কারণ নেই। সাধারণ ৬ থেকে ৭ দিনেই এটি ভালো হয়ে যায়।’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
All the achievements of Sheikh Hasina

শেখ হাসিনার যত অর্জন

শেখ হাসিনার যত অর্জন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। দীর্ঘ রাজনৈতিক পথচলায় তার অর্জনের তালিকা দীর্ঘ। সেসব অর্জনের সূত্র ধরেই বঙ্গবন্ধু-কন্যা ভূষিত হয়েছেন ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে।

গণতন্ত্র ও দেশের মানুষের ভোট-ভাতের অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে অসামান্য অবদান রাখার পাশাপাশি রাষ্ট্র পরিচালনায়ও ব্যাপক সাফল্যের পরিচয় দিয়ে চলেছেন বঙ্গবন্ধুর জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। নিজের অর্জনেই তিনি ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। দীর্ঘ রাজনৈতিক পথচলায় তিনি ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন।

আওয়ামী লীগের টানা তিন মেয়াদের ক্ষমতায় প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থেকে তার অর্জনের তালিকাটা এককথায় বিশাল। তার শাসনামলেই চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার। শেষ হয়েছে একাত্তরের ঘাতক যুদ্ধাপরাধীদের বিচার।

সংবিধান সংশোধনের মধ্য দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনঃপ্রতিষ্ঠা, ভারত ও মিয়ানমারের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তি ও সমুদ্রবক্ষে বাংলাদেশের সার্বভৌমত্ব প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে ব্লু ইকনোমির নতুন দিগন্ত উন্মোচন, ভারতের সঙ্গে সীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়ন ও ছিটমহল বিনিময়, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট সফল উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে মহাকাশ জয়, সাবমেরিন যুগে বাংলাদেশের প্রবেশের মতো বড় বড় অর্জন এসেছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আরও অনেক অর্জনের মধ্যে রয়েছে- নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ, মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন, কর্ণফুলী টানেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, নতুন নতুন উড়াল সেতু, মহাসড়কগুলো ফোর লেনে উন্নীত করা, এলএনজি টার্মিনাল স্থাপন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন ও মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ ডলারে উন্নীতকরণ।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থেকে শেখ হাসিনা জাতির জন্য আরও যেসব অর্জন নিয়ে এসেছেন তার মধ্যে রয়েছে- দেশে দারিদ্র্যের হার হ্রাস, গড় আয়ু প্রায় ৭৪ বছর ৪ মাসে উন্নীত হওয়া, যুগোপযোগী শিক্ষানীতি প্রণয়ন, সাক্ষরতার হার ৭৫ দশমিক ৬০ শতাংশে উন্নীত করা, বছরের প্রথম দিনে প্রাথমিক থেকে মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীর হাতে বিনামূল্যে নতুন বই তুলে দেয়া, মাদ্রাসা শিক্ষাকে মূলধারার শিক্ষার সঙ্গে সম্পৃক্ত করা ও স্বীকৃতি দান, মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন, প্রতিটি জেলায় একটি করে সরকারি/বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনের উদ্যোগ, নারী নীতি প্রণয়ন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণ ও ফাইভ-জি মোবাইল প্রযুক্তি চালু।

শেখ হাসিনা ১৯৯৬-০১ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকালে পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি ও ভারতের সঙ্গে গঙ্গার পানিবণ্টন চুক্তি তার সরকারের অন্যতম সাফল্য হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। বিশ্বসভায় আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাঙালি।

গণতন্ত্র, শান্তি ও মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা এবং নারী শিক্ষার বিস্তার, শিশুমৃত্যুর হার হ্রাস ও দারিদ্র্য বিমোচনের সংগ্রামে অসামান্য ভূমিকার স্বীকৃতি হিসেবে দেশি-বিদেশি বেশ কিছু পুরস্কার ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা।

সেসবের মধ্যে সাউথ-সাউথ ভিশনারি পুরস্কার-২০১৪, শান্তি বৃক্ষ-২০১৪, জাতিসংঘ পুরস্কার-২০১৩ ও ২০১০, রোটারি শান্তি পুরস্কার-২০১৩, গোভি পুরস্কার-২০১২, সাউথ-সাউথ পুরস্কার-২০১১, ইন্দিরা গান্ধী শান্তি পুরস্কার-২০১০, পার্ল এস. বার্ক পুরস্কার-২০০০, সিইআরইএস মেডাল-১৯৯৯, এম কে গান্ধী পুরস্কার-১৯৯৮, মাদার তেরেসা শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮, ইউনেস্কোর ফেলিক্স হোফুয়েট-বোয়েগনি শান্তি পুরস্কার-১৯৯৮ উল্লেখযোগ্য।

এছাড়া পরিবেশ সংরক্ষণে অসামান্য অবদানের জন্য এ বছর জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’-এ ভূষিত হয়েছেন শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ
গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় নির্বাচনের বিকল্প নেই: ডেপুটি স্পিকার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Alokavartikas 76th birthday today

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
১৯৪৭ সালে সবে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হয়েছে উপমহাদেশ। সদ্য স্বাধীনতা পাওয়া রাষ্ট্র পাকিস্তানের পূর্ব অংশের গোপালগঞ্জে ২৮ সেপ্টেম্বর জন্ম নিল এক মেয়ে শিশু। নাম রাখা হলো শেখ হাসিনা। আনন্দ, সংগ্রাম, বেদনার নানা ঘটনাপ্রবাহের পর বাংলাদেশের সবচেয়ে বেশি মেয়াদের প্রধানমন্ত্রী তিনি। ৭৬তম জন্মদিনে এসে বাংলাদেশের রাজনীতির নিয়ন্ত্রকের ভূমিকায় এই বঙ্গবন্ধু-কন্যা।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন আজ বুধবার। ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম হয় তার। তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের প্রথম সন্তান।

১৯৭৫ সালের পটপরিবর্তনের পর ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে আওয়ামী লীগের দুঃসময়ে দলীয় প্রধানের দায়িত্ব নেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা। এরপর থেকে ৩৪ বছর ধরে নিজ রাজনৈতিক প্রজ্ঞা ও আপসহীন নেতৃত্বের মাধ্যমে দেশের অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনীতির মূল স্রোতধারার প্রধান নেতা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। পর পর তিনবার সরকারের প্রধান হিসেবে আলোকবর্তিকা হয়ে দেশকে নিয়ে যাচ্ছেন সমৃদ্ধির দিকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গ্রাজুয়েট ডিগ্রি লাভকারী শেখ হাসিনা তৎকালীন ছাত্রলীগের অন্যতম নেত্রী ছিলেন। আশির দশকের রাজনীতির মূলধারায় আসার পর তার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এবং অন্য রাজনৈতিক জোট ও দলগুলো ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারবিরোধী গণআন্দোলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বেই ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময় প্রধান বিরোধী দলের নেতা হিসেবে তার নেতৃত্বে অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দলগুলোর সমন্বয়ে প্রথমে ১৪ দলীয় জোট এবং পরে মহাজোট গড়ে ওঠে। ১৪ দল ও মহাজোটের তীব্র আন্দোলনের মুখে অধ্যাপক ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদের নেতৃত্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ২২ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

শেখ হাসিনার শিক্ষাজীবন শুরু হয় টুঙ্গিপাড়ার এক পাঠশালায়। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে শেখ মুজিবুর রহমান প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য (এমপিএ) নির্বাচিত হওয়ার পর তিনি পরিবারকে ঢাকায় নিয়ে আসনে। পুরান ঢাকার মোগলটুলির রজনী বোস লেনে বসবাস শুরু করেন তারা। পরে যুক্তফ্রন্ট মন্ত্রিসভার সদস্য নির্বাচিত হলে আবাস স্থানান্তরিত হয় ৩ নম্বর মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবনে। ১৯৫৬ সালে শেখ হাসিনা ভর্তি হন টিকাটুলির নারীশিক্ষা মন্দির বালিকা বিদ্যালয়ে। বঙ্গবন্ধু ধানমন্ডির ঐতিহাসিক ৩২ নম্বর রোডের বাড়িতে বসবাস শুরু করেন ১৯৬১ সালের ১ অক্টোবর।

শেখ হাসিনা ১৯৬৫ সালে আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন ঢাকার বকশী বাজারের ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ (বর্তমানে বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা মহাবিদ্যালয়) থেকে। কলেজে অধ্যয়নকালে তিনি কলেজ ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে নির্বাচিত হন। একই বছর ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে।

স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে ছাত্রলীগের নেত্রী হিসেবে আইয়ুব-বিরোধী আন্দোলন এবং ৬ দফা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন শেখ হাসিনা। ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম. এ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনা বিয়েবন্ধনে আবদ্ধ হন। এই দম্পতি এক পুত্র ও এক কন্যা (সজীব ওয়াজেদ জয় ও সায়মা ওয়াজেদ পুতুল) সন্তানের গর্বিত বাবা-মা।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাতে ঘাতকের নির্মম বুলেটে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হন। এ সময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। শুরু হয় তাদের প্রবাস জীবন।

১৯৮১ সালের ১৪, ১৫ ও ১৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকার ইডেন হোটেলে অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক কাউন্সিল অধিবেশন। এই কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে জাতির এক ক্রান্তিলগ্নে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে সংগঠনের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। ডাক আসে দেশমাতৃকার হাল ধরার। সামরিক শাসকদের রক্তচক্ষু ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ১৯৮১ সালের ১৭ মে স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন শেখ হাসিনা। রাজনৈতিক পথচলায় তিনি ‘জননেত্রী’, ‘গণতন্ত্রের মানসকন্যা’, ‘দেশরত্ন’, ‘রাষ্ট্রনায়ক’ প্রভৃতি উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট তদানীন্তন বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মদদে আওয়ামী লীগের সমাবেশে গ্রেনেড হামলা করে শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা চালানো হয়। গুরুতর আহত হলেও প্রাণে বেঁচে যান তিনি। শুধু এই হামলা নয়, সাফল্য গাঁথা কর্মময় জীবন কখনোই কুসমাস্তীর্ণ ছিল না বঙ্গবন্ধুর বড় মেয়ের, ছিল কণ্টকাপূর্ণ।

মুক্তিযুদ্ধের ৯ মাস তিনি গৃহবন্দি থেকেছেন। এক/এগারোর সময়ও কারাগারে তার জীবননাশের ষড়যন্ত্র চলে। সামরিক স্বৈরশাসনামলেও বেশ কয়েকবার তাকে কারানির্যাতন ভোগ করতে হয়েছে। থাকতে হয়েছে গৃহবন্দি। বার বার তার জীবনের ওপর ঝুঁকি এসেছে। অন্তত ২০ বার তাকে হত্যার অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। জীবনের ঝুঁকি নিয়েও তিনি অসীম সাহসে তার লক্ষ্য অর্জনে থেকেছেন অবিচল। হয়ে উঠেছেন বাঙালি জাতির ‘রানার’।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ এ পর্যন্ত চার মেয়াদে ক্ষমতাসীন হয়েছে। ১৯৯৬ সালে তার নেতৃত্বে দীর্ঘ ২১ বছর পর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দেয়া দলটি। ওই বছরের ১২ জুনের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসনে বিজয়ী হয়ে ২৩ জুন সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ।

এরপর ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের ঐতিহাসিক নির্বাচনে চার-তৃতীয়াংশ আসনে ভূমিধস বিজয় অর্জনের মাধ্যমে ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠিত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন শেখ হাসিনা। ২০১৪ এর ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিজয়ের পর ১২ জানুয়ারি শেখ হাসিনার নেতৃত্বে টানা দ্বিতীয় মেয়াদের মহাজোট সরকার গঠিত হয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন

সবশেষ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার পরিচালনা করছে শেখ হাসিনার দল। এছাড়া ১৯৮৬ সালের তৃতীয়, ১৯৯১ সালের পঞ্চম ও ২০০১ সালের অষ্টম সংসদে বিরোধী দলের নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে জ্ঞানভিত্তিক উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে গড়ে তোলার প্রত্যয় নিয়ে উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে জননেত্রী শেখ হাসিনা ‘প্রেক্ষিত পরিকল্পনা তথা রূপকল্প-২০৪১’ ঘোষণা করেছেন। সেই রূপকল্প বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছে তার নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার।

এছাড়াও আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত, সমৃদ্ধ, শান্তিপূর্ণ, কল্যাণকর ও নিরাপদ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি জলবায়ু সহিষ্ণু ব-দ্বীপ গড়ে তোলার লক্ষ্যে ‘ডেল্টা প্ল্যান-২১০০’ ঘোষণা করা হয়েছে।

দুই বছর বিরতি দিয়ে এবারও জন্মদিনে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন বঙ্গবন্ধু-কন্যা। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে যোগ দিতে এই মুহূর্তে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করছেন তিনি। ৪ অক্টোবর তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।

আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানরত শেখ হাসিনাকে আজ জন্মদিনের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হবে। ঢাকা থেকেও টেলিফোনে তাকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানাবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

বিভিন্ন দল ও সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজ শেখ হাসিনার জন্মদিন পালন করবে। এ লক্ষ্যে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ বএকল ৩টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আলোচনা সভার আয়োজন করেছে আওয়ামী লীগ।

এছাড়াও কেন্দ্রীয়ভাবে বাদ জোহর জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররমসহ দেশের সব মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হবে। পাশাপাশি সকাল ১০টায় ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে (বাসাবো, সবুজবাগ) বৌদ্ধ সম্প্রদায়, সকাল ৯টায় মিরপুর ব্যাপ্টিস্ট চার্চে (৩/৭/এ সেনপাড়া, পর্বতা, মিরপুর-১০) খ্রীষ্টান এসোসিয়েশন বাংলাদেশ (সিএবি) এবং সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকেশ্বরী মন্দিরে হিন্দু সম্প্রদায় বিশেষ প্রার্থনা সভার আয়োজন করবে।

জন্মদিন আয়োজনের অংশ হিসেবে আজ ঢাকাসহ সারাদেশে সব সহযোগী সংগঠন আলোচনা সভা, আনন্দ শোভাযাত্রা, দোয়া মাহফিল, বিশেষ প্রার্থনা ও আলোকচিত্র প্রদর্শনীসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করবে।

আরও পড়ুন:
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে কাব্য সংকলন প্রকাশ
গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতায় নির্বাচনের বিকল্প নেই: ডেপুটি স্পিকার
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে বিটিভিতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Army felicitates victorious womens football team

সাফ জয়ী নারী ফুটবল দলকে সেনাবাহিনীর সংবর্ধনা

সাফ জয়ী নারী ফুটবল দলকে সেনাবাহিনীর সংবর্ধনা সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ কথা বলেন ফুটবলার ও কোচের সঙ্গে। ছবি: আইএসপিআর
ঢাকা সেনানিবাসের আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে আড়ম্বরপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে জাতীয় নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়, কোচ ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে ক্রেস্ট, উপহার সামগ্রী এবং এক কোটি টাকার চেক দেয়া হয়।

সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ-২০২২ জয়ী বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দলের গর্বিত সব খেলোয়াড়, কোচ ও কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের মঙ্গলবার সংবর্ধনা দিয়েছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

ঢাকা সেনানিবাসের আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে আড়ম্বরপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানে জাতীয় নারী ফুটবল দলের খেলোয়াড়, কোচ ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে ক্রেস্ট, উপহার সামগ্রী এবং এক কোটি টাকার চেক দেয়া হয়।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

নেপালের কাঠমান্ডুতে ১৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ফুটবল দল ফাইনালে শক্তিশালী নেপালকে ৩-১ গোলে হারিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে সেনাবাহিনী প্রধান বলেন, ‘এই জয়ের অনুপ্রেরণা নিয়ে বাংলাদেশের নারী ফুটবল দল আগামীতে আরও এগিয়ে যেতে পারবে। বিশ্বের বুকে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে বাংলাদেশের নারী ফুটবলাররা বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে সবাই দৃঢ় আশাবাদী। সে সঙ্গে দেশের ক্রীড়াঙ্গনে এই সাফল্য নতুন প্রেরণার সঞ্চার করবে।’

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন, জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শিদী এমপি, ফিফা কাউন্সিলের সদস্য ও বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের মহিলা উইং-এর চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অফ জেনারেল স্টাফ (সিজিএস) লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার (পিএসও) লেফটেন্যান্ট জেনারেল ওয়াকার-উজ-জামান ছাড়াও সামরিক বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, চ্যাম্পিয়ন দলের নারী ফুটবলারদের গর্বিত অভিভাবকগণ ও অন্য অতিথিবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সাবিনা-কৃষ্ণার জয়ে মুশফিকের ‘আলহামদুলিল্লাহ’
সাফ শিরোপা: ছেলেদের থেকে এগিয়ে মেয়েরা
বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন
বাংলাদেশের সামনে ইতিহাসের হাতছানি
অপরাজিত থেকেই ফাইনালে ছোটনের শিষ্যরা

মন্তব্য

p
উপরে