× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Farmers in the forest department demanding compensation for chicken thief
google_news print-icon

‘মুরগি চোর’ কোলে নিয়ে ক্ষতিপূরণ দাবিতে বনদপ্তরে কৃষক

মুরগি-চোর-কোলে-নিয়ে-ক্ষতিপূরণ-দাবিতে-বনদপ্তরে-কৃষক
সাপ নিয়ে বনদপ্তরে কৃষক। ছবি: সংগৃহীত
চন্দন মূর্মু নামের ৬০ বছরের ওই কৃষক বলেন, ‘রোজ রোজ মুরগি চুরি যাওয়ায় বেশ চিন্তায় পড়েছিলাম।সকালে বাড়ি থেকে বের হচ্ছিলাম। দেখি, বিশাল আকারের একটা সাপ। তখন বুঝতে অসুবিধা হয়নি, মুরগি চোর কে। তারপর সাপটিকে কোলে তুলে নিয়ে ক্ষতিপূরণের জন্য বনদপ্তরে চলে আসি।’

কৃষকের বাড়ি থেকে একের পর এক ‘চুরি’ হয়ে যাচ্ছিল মুরগি। অবশেষে ধরা পড়ল ‘চোর’। আর তাকে নিয়ে বনদপ্তরের কার্যালয়ে ঢুকে ওই কৃষক চেয়েছেন ক্ষতিপূরণও।

তবে চোরকে দেখে রীতিমত চমকে গেছেন বনদপ্তরের কর্মকর্তারা। কারণ মুরগি চোর আর কেউ নয়, ১০ ফুটের একটি অজগর।

পশ্চিমবঙ্গের পুরুলিয়ার বান্দোয়ানে শুক্রবার এ ঘটনা ঘটে। এদিন সকাল ১০টায় বান্দোয়ান- ১ বনাঞ্চলের দপ্তরে সাপ কোলে নিয়ে যান ওই কৃষক।

চন্দন মূর্মু নামের ৬০ বছরের ওই কৃষক বলেন, ‘রোজ রোজ মুরগি চুরি যাওয়ায় বেশ চিন্তায় পড়েছিলাম। সকালে বাড়ি থেকে বের হচ্ছিলাম। দেখি, বিশাল আকারের একটা সাপ। তখন বুঝতে অসুবিধা হয়নি, মুরগি চোর কে। তারপর সাপটিকে কোলে তুলে নিয়ে ক্ষতিপূরণের জন্য বনদপ্তরে চলে আসি।’

সাপটিকে না মেরে ধরে নিয়ে আসায় খুশি বনদপ্তর। ওই কৃষককে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দিয়েছেন কর্মকর্তারা।

চাষবাসের পাশাপাশি চন্দন হাঁস-মুরগি পালন করেন। সাপটিকে কোলে নিয়ে ৪ কিলোমিটার পথ হেঁটে বনদপ্তরে আসেন তিনি।

তিনি জানান, তাকে বনদপ্তর থেকে ক্ষতিপূরণের আশ্বাস দেয়া হয়েছে। একটি ফরম দেয়া হয়েছে, সেটি পূরণ করে জমা দিতে বলা হয়েছে।

বান্দোয়ান-১ বনাঞ্চলের কর্মকর্তা বিনয় মাহাতো বলেন, ‘ওই কৃষকের প্রশংসা না করে পারছি না। কারণ একের পর এক মুরগি খেয়ে ফেলার পরেও সাপটিকে না মেরে ওই কৃষক যেভাবে কোলে তুলে ৪ কিলোমিটার পথ হেঁটে বনদপ্তরের কার্যালয় পৌঁছেছেন, তা সত্যি প্রশংসনীয়।’

কংসাবতী দক্ষিণের বনকর্তা আমিতাভ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘সাধারণত কোনো বন্যপ্রাণ ক্ষতি করলে তার উপর ক্রোধ জন্মায়। কিন্তু উনি যেভাবে ভালোবেসে সাপটিকে নিয়ে এসেছেন, তাতে বোঝা যায় উনি বুঝেছেন প্রকৃতির ভারসাম্য বজায় রাখতে সাপটিকে বাঁচিয়ে রাখা দরকার। ওই কৃষককে আমরা কীভাবে সম্মান জানাতে পারি, তা দেখছে আমাদের দপ্তর।’

আরও পড়ুন:
ভাইয়ের শেষকৃত্যে এসে তারও মৃত্যু সাপের ছোবলে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The exact reason behind the killing of MP Anna Harun is not yet known

এমপি আনার হত্যার সুনির্দিষ্ট কারণ এখনও জানা যায়নি: হারুন

এমপি আনার হত্যার সুনির্দিষ্ট কারণ এখনও জানা যায়নি: হারুন রাজধানীর মিণ্টো রোডের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে কথা বলেন ডিএমপি ডিবি প্রধান হারুন অর রশীদ। ছবি: নিউজবাংলা
ডিএমপি ডিবি প্রধান বলেন, ‘খুনিরা কলকাতার ফ্ল্যাটে এমপি আনোয়ারুল আজীম আনারকে হত্যার পর চারটি মোবাইল ফোন সেট নিয়ে বেনাপোল সীমান্তবর্তী এলাকায় আসে এবং পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে হত্যাকাণ্ডে ফাঁসাতে তাদেরকে ফোন করে।’

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যার পেছনে ব্যবসায়িক লেনদেন, আধিপত্য বিস্তারসহ অনেক কারণ থাকতে পারে। তবে সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ এখনও জানা যায়নি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ শনিবার সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। সূত্র: ইউএনবি

রাজধানীর মিণ্টো রোডে ডিবি’র সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) তিন সদস্যের একটি দল শনিবার রাত বা রোববার সকালের মধ্যে ভারতের উদ্দেশে রওনা হবে।

বাংলাদেশ পুলিশের পাশাপাশি কলকাতা পুলিশও সংসদ সদস্য আনার হত্যার রহস্য উদঘাটনে তদন্ত করছে। তারা ইতোমধ্যে বাংলাদেশ সফর করেছে।

ডিএমপি ডিবি প্রধান বলেন, ‘অপহরণের পর খুনিরা এমপি আনারকে ফ্ল্যাটে নিয়ে যায়। তারপর খুনিরা তার একটি ফোন অন্য জায়গায় নিয়ে যায়। উদ্দেশ্য, এটা বুঝানো যে তিনি অন্য জায়গায় আছেন।

‘এছাড়া খুনিরা তাকে হত্যার পর চারটি মোবাইল ফোন সেট নিয়ে বেনাপোল সীমান্তবর্তী এলাকায় আসে এবং পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে হত্যাকাণ্ডে ফাঁসাতে তাদেরকে ফোন করে।’

মরদেহ পাওয়া যায়নি অথচ পুলিশ কেন এটাকে হত্যাকাণ্ড বলছে- এমন প্রশ্নের জবাবে হারুন বলেন, ‘এমন অনেক মামলা আছে যেখানে বছরের পর বছর ধরে লাশ পাওয়া যায়নি।’

প্রসঙ্গত, এমপি আনার চিকিৎসার জন্য ১১ মে কলকাতায় যান এবং ১৪ মে থেকে তার কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ২২ মে বলেন, কলকাতার অদূরে নিউ টাউনের একটি ফ্ল্যাটে তাকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে।

এমপি আনারের মৃত্যুর ঘটনায় ২২ মে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

ইতোমধ্যে হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার তিন আসামির আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছে আদালত।

আরও পড়ুন:
এমপি আনার হত্যা: অপরাধী হলে শিলাস্তির বিচার চান দাদা
এমপি আনার হত্যা মামলায় ৩ আসামি রিমান্ডে
এনডিটিভির প্রতিবেদনে এমপি আনার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা
হাজারও মানুষের জানাজায় অংশ নেয়া এমপি আনারের মরদেহই মিলছে না
মাঠের মাঝে শাহীনের রহস্যঘেরা বাংলো

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Jagannath University will have a modern campus with technology

‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রযুক্তিসমৃদ্ধ আধুনিক ক্যাম্পাস করা হবে’

‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রযুক্তিসমৃদ্ধ আধুনিক ক্যাম্পাস করা হবে’ রাজধানীতে বঙ্গবাজার প্রাঙ্গণে শনিবার একাধিক স্থাপনার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: নিউজবাংলা
শেখ হাসিনা বলেন, ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এতটুকু জায়গা; বিভিন্ন জায়গায় ছড়ানো-ছিটানো হোস্টেল। সেজন্য সবকিছু এক জায়গায় করে একটা ভালো ক্যাম্পাস এবং শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের জন্য আধুনিক সব সুবিধাসম্পন্ন আবাসস্থল, শিক্ষার জন্য আধুনিক, সুন্দর, প্রযুক্তি দিয়ে একটা ক্যাম্পাস তৈরি করা হবে।’

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) নতুন ক্যাম্পাসের কাজ শুরুর আশ্বাস দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়কে একটি আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয় করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

রাজধানীর বঙ্গবাজার প্রাঙ্গণে শনিবার ‘বঙ্গবাজার পাইকারি নগর বিপণি বিতান’, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ ফজলুল হক মণি সরণি’, ‘নজরুল সরোবর’ ও ‘হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী শিশুপার্ক আধুনিকীকরণ’ প্রকল্পের নির্মাণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জগন্নাথ একটা স্কুল ছিল। প্রাইমারি স্কুল, প্রাইমারি থেকে উচ্চ মাধ্যমিক হয়। তারপর কলেজ হয়, এখন বিশ্ববিদ্যালয়। এতটুকু জায়গা, বিভিন্ন জায়গায় ছড়ানো-ছিটানো হোস্টেল। সেজন্য সবকিছু এক জায়গায় করে, একটা ভালো ক্যাম্পাস এবং শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের জন্য আধুনিক সব সুবিধাসম্পন্ন আবাসস্থল, শিক্ষার জন্য আধুনিক, সুন্দর, প্রযুক্তি দিয়ে একটা ক্যাম্পাস তৈরি করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ইতোমধ্যে জায়গা দেয়া হয়েছে, ডিজাইনও করা হয়েছে। সেই কাজও আমরা খুব তাড়াতাড়ি শুরু করব। নতুন ক্যাম্পাস আমরা করে দেব। ছেলেমেয়েরা যাতে সুস্থ পরিবেশে লেখাপড়া করতে পারে সেদিকে নজর রেখে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।’

উপাচার্য যা বললেন

এদিকে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের ভিডিওটি সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পরার পর ব্যাপক সাড়া পড়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও সাবেক-বর্তমান শিক্ষার্থীরা ভিডিওটি শেয়ার করে কেউ কৃতজ্ঞতা জানিয়েছে। আবার কেউ কেউ দীর্ঘদিনেও কাজের আশানরূপ অগ্রগতি না হওয়া নিয়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন।

প্রকল্পের অগ্রগতি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে মোবাইল ফোনে তিনি বলেন, ‘আমরা খুবই আশান্বিত হয়েছি যে প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন। তার স্বদিচ্ছার জন্য ২০১৮ সালে কেরানীগঞ্জে জমি বরাদ্দ করা হয়।

‘আমি দায়িত্ব নেয়ার পর প্রয়াত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হক যে টেন্ডারগুলো সব প্রক্রিয়া শেষ করে পাস করে গেছেন, শুধু সেগুলোর ওয়ার্ক অর্ডার করেছি। তদারকি কমিটি ও গণমাধ্যমের মাধ্যমে জানতে পেরেছি যে এখানে অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে। প্রকৌশলীদের সঙ্গে মিটিং করেছি। তারাও স্বীকার করেছেন যে তাদের কাজে গাফিলতি আছে। আমাদের অভ্যন্তরে যারা কাজ করছেন, তারা নতুন ক্যাম্পাস বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রীর সদিচ্ছার প্রতি সম্মান দেখাতে পারেননি। তাদের সক্ষমতারও ঘাটতি আছে বলে মনে হচ্ছে।’

উপাচার্য বলেন, ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিদ্যমান যে কাঠামো তাতে এত বড় প্রকল্প চালানোও অসম্ভব। কারণ আমাদের সে ধরনের দক্ষ বা বিশেষজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ার নেই। ডিপিপিতে উল্লেখ করা ছিলো যে জনবল দেয়া হবে, ইঞ্জিনিয়ার দেয়া হবে, মনিটরিং টিম দেয়া হবে। কিন্তু কোনো কারণবশত ডিপিপি থেকে সেগুলো বাদ দেয়া হয়।

‘সরকারের প্রতি, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ও ইউজিসিরি প্রতি আপিল করছি- তারা যেন ডিপিপি রিভাইজ করে দক্ষ জনবল, মনিটরিং টিম ও অন্যান্য দরকারি উপাদানের ব্যবস্থা করেন। তাহলে আমরা কাজটি দ্রুত এগিয়ে নিতে পারব।’

প্রসঙ্গত, ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে আবাসিক হলের দাবিতে শিক্ষার্থীদের মাসব্যাপী আন্দোলনের মুখে কেরানীগঞ্জের তেঘরিয়ায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ক্যাম্পাস স্থাপনের সিদ্ধান্ত জানায় সরকার।

একাডেমিক ভবন, প্রশাসনিক ভবন, আবাসন ব্যবস্থা, ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র, ক্যাফেটেরিয়া, খেলার মাঠ, চিকিৎসাকেন্দ্র, সুইমিংপুল, লেক নির্মাণসহ উন্নতমানের ক্যাম্পাস তৈরির মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে তেঘরিয়ার পশ্চিমদি মৌজায় ২০০ একর ভূমি অধিগ্রহণের অনুমোদন দেয়া হয়।

২০১৮ সালের ৩ অক্টোবর জমির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয় ভূমি মন্ত্রণালয়। ৯ অক্টোবর নতুন ক্যাম্পাস স্থাপনে ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়নের জন্য প্রকল্প অনুমোদন করে একনেক। এক হাজার ৯২০ কোটি ৯৪ লাখ ৩৯ হাজার টাকার এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হওয়ার কথা ছিল ২০২০ সালের অক্টোবরের মধ্যে।

২০১৯ সালের জুলাইয়ে নতুন ক্যাম্পাসের নকশাও দেখানো হয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে। ওই বছরের জুলাইয়ে প্রায় ৯০০ কোটি টাকার চেক পায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

ইতোমধ্যে ক্যাম্পাসের সীমানা প্রাচীর ও লেকের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
এমপি আনারের নিহতের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক
উন্নত দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ব্যর্থ: প্রধানমন্ত্রী
হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় ইরানকে সহায়তা ‘দিতে পারেনি’ যুক্তরাষ্ট্র
ব্যাটারিচালিত রিকশা চলাচলে এলাকা ভাগ করে দিতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ
বঙ্গবন্ধুর নামে ‘শান্তি পদক’ দেবে সরকার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangladesh has set an example in religious harmony PM

বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতিতে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতিতে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে: প্রধানমন্ত্রী শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে শনিবার গণভবনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় গুরু ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: পিআইডি
শেখ হাসিনা বলেন, ‘অনেকেই চেষ্টা করে বাংলাদেশকে ভিন্ন পথে নিতে। কিন্তু সেটা নিতে পারবে না। আমাদের মন-মানসিকতা, বাংলাদেশের মানুষের মন খুব উদার। সবাই একসঙ্গে চলতেই আমরা পছন্দ করি। সেভাবেই আমরা চলব।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ উদার এবং তাদের চিন্তা-চেতনা অসাম্প্রদায়িক। ধর্মীয় সম্প্রীতির ক্ষেত্রে সারা বিশ্বে আমরা একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পেরেছি।’

শুভ বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে শনিবার গণভবনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ধর্মীয় গুরু ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের দেশটাকে আমরা গড়ে তুলতে চাই। এখানে ধর্ম-বর্ণ বলে কোনো কথা নেই। আমরা মানুষের জন্য কাজ করি। মানুষের সার্বিক উন্নয়নে, তাদের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে আমরা কাজ করি।

‘আমরা চাই আমাদের দেশটা এগিয়ে যাক। বাংলাদেশটাতে সব সময় বিভিন্ন ধর্মের মানুষ নিয়েই আমাদের চলা। সে ক্ষেত্রে আমি মনে করি সারা বিশ্বে আমরা একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পেরেছি অসাম্প্রদায়িক চেতনার বাংলাদেশকে গড়ে তোলায়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে অনেকেই আবার চেষ্টা করে বাংলাদেশকে ভিন্ন পথে নিতে। কিন্তু সেটা নিতে পারবে না। আমাদের মন-মানসিকতা, বাংলাদেশের মানুষের মন খুব উদার। সবাই একসঙ্গে চলতেই আমরা পছন্দ করি। সেভাবেই আমরা চলব।

‘প্রত্যেক ধর্মেরই মূল কথা যেটা গৌতম বুদ্ধও বলে গেছেন- মানব কল্যাণ, জগতের সব প্রাণী সুখী হোক। আমাদেরও সেই কথা- সবাই সুখে থাকবে, সুন্দর জীবনযাপন করবে।’

আরও পড়ুন:
রিকশাচালক দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবেন: প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবাজারে ঢাদসিকের চার প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন প্রধানমন্ত্রীর
বঙ্গবাজার বিপণি বিতান ও সোহরাওয়ার্দী শিশু উদ্যানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন শনিবার
বিমান ঘাঁটির বিনিময়ে ক্ষমতায় ফেরার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী
এমপি আনারের নিহতের ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর শোক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two sisters died after drowning in a pond in Jeevannagar

জীবননগরে পুকুরে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু

জীবননগরে পুকুরে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু পুকুরের পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যুর পর প্রতিবেশী ও স্বজনরা ভিড় জমান বাড়িতে। ছবি: নিউজবাংলা
শিশু দুটি দাদা কাশেম মণ্ডল বলেন, ‘খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে নিজাম খাঁর পুকুর পাড়ে ওদের স্যান্ডেল পড়ে থাকতে দেখে পুকুরে নেমে ওদের খুঁজতে থাকি। তখন আমার হাতে ওদের মরদেহ উঠে আসে।’

চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে পানিতে নেমে দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। শনিবার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার শাখারিয়া গ্রামে ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

মৃত শিশুরা হলো- একই গ্রামের মসজিদ পাড়ার আশরাফুল হকের মেয়ে ছয় বছর বয়সী উম্মে তাবাসসুম ও রাজু আহাম্মেদের পাঁচ বছরের মেয়ে রিতু খাতুন। তারা দুজন সম্পর্কে চাচাতো বোন।

মৃত শিশুদের দাদা কাশেম মণ্ডল বলেন, ‘বেলা ১১টার দিকে বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে বসে তখন তাবাসসুম ও রিতু খাবার খেতে খেতে আমার কাছে এসে কিছুক্ষণ বসে। খাবার খাওয়া শেষ করে একজন বসে থাকে আর একজন শুয়ে থাকে। একটু পর ওরা বাড়ি চলে যায়।

‘আধ ঘণ্টা পর থেকে ওদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে নিজাম খাঁর পুকুর পাড়ে ওদের স্যান্ডেল পড়ে থাকতে দেখে পুকুরে নেমে ওদের খুঁজতে থাকি। তখন আমার হাতে ওদের মরদেহ উঠে আসে।’

সীমান্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইশাবুল ইসলাম মিল্টন বলেন, ‘খেলার সময় পুকুরে পড়ে দুই শিশুর মৃত্যু হয়। শিশু দুটির মরদেহ বাড়িতে রয়েছে।’

জীবননগর থানার ওসি এস এম জাবীদ হাসান বলেন, ‘থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। পরিবারের কোন অভিযোগ না থাকায় মরদেহ দাফনের অনুমতি দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মাদারীপুরে পানিতে ডুবে দুই বোনের মৃত্যু
মহানন্দায় গোসলে নেমে শিশুসহ দু’জনের মৃত্যু
চাঁপাইনবাবগঞ্জে পুকুরে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
কুড়িগ্রামে পুকুরের পানিতে খেলতে গিয়ে প্রাণ গেল দুই শিশুর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The womans hands feet and head were scattered on the railway line

রেললাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল নারীর হাত পা ও মাথা

রেললাইনে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিল নারীর হাত পা ও মাথা রেললাইন থেকে পারুল বেগমের খণ্ডিত মরদেহ সরানো হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা
শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক হেমায়েত হোসেন বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক কলহের কারণে পারুল বেগম ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন।’

মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে পারুল বেগম নামের এক নারী নিহত হয়েছেন।

শনিবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের বাগেরটেকি এলাকায় রেললাইন থেকে নিহতের খণ্ডিত মরদেহ উদ্ধার করে শ্রীমঙ্গলের রেলওয়ে পুলিশ।

৩৫ বছর বয়সী পারুল বেগম উপজেলার রাউৎগাঁও ইউনিয়নের চৌধুরীবাজার এলাকার মো. ফারুক মিয়ার স্ত্রী। প্রায় মাসখানেক আগে তাদের বিয়ে হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হেমায়েত হোসেন বলেন, ‘ঢাকা থেকে সিলেটের উদ্দেশে ছেড়ে আসা আন্তঃনগর পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেন দুপুর ১২টার দিকে বাগেরটেকি এলাকায় পৌঁছালে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন পারুল বেগম। এতে তার দুই হাত ও পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় এবং মাথা থেঁতলে গিয়ে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়।’

তিনি বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, পারিবারিক কলহের কারণে পারুল বেগম ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দেন। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
টাঙ্গাইলে চলন্ত লরির পেছনে কাভার্ড ভ্যানের ধাক্কা, নিহত ২
বাড়ি ফেরার পথে ট্রাকের ধাক্কায় কলেজছাত্র নিহত
কুমিল্লায় ট্রেনে কাটা পড়ে স্কুলছাত্রীর মৃত্যু, রেললাইন অবরোধ
বগুড়ায় ট্রেনে কাটা পড়ে দুই যুবকের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Killing of MP Anna Dada wants punishment for the culprit

এমপি আনার হত্যা: অপরাধী হলে শিলাস্তির বিচার চান দাদা

এমপি আনার হত্যা: অপরাধী হলে শিলাস্তির বিচার চান দাদা এমপি আনার হত্যাকাণ্ডে জড়িত হিসেবে নাম এসেছে শিলাস্তি রহমানের। ছবি: নিউজবাংলা
দাদা সেলিম মিয়া বলেন, ‘আরিফুর রহমানের দুই সন্তান। শিলাস্তি বড় ও সুবাহ ছোট। ভাতিজা ঝুট ব্যবসায়ী। ছোট বেলা থেকেই ঢাকার উত্তরায় বসবাস করে। মাঝেমধ্যে গ্রামের বাড়িতে এলেও দুই/একদিন থেকেই চলে যায়। যতটুকু দেখেছি, আমার নাতনী শিলাস্তির চলাফেরা উচ্ছৃঙ্খল। সে অপরাধী হয়ে থাকলে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক।’

ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজীম আনার হত্যাকাণ্ডে জড়িয়ে গেছে একটি নাম- শিলাস্তি রহমান। তথ্য বেরিয়েছে, শিলাস্তি রহমান হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী শিমুল ভূঁইয়ার পরিকল্পনার অংশ হয়ে হত্যাকাণ্ডে সহযোগীর ভূমিকা রেখেছেন। তাকে দিয়ে টোপ ফেলেই

এমপি আনারকে তার বন্ধুর বাসা থেকে ঘাতকদের ফ্ল্যাটে নেয়া হয়।

টাঙ্গাইলের নাগরপুরের এই তরুণী বাস্তবিকই যদি অপরাধী হয়ে থাকেন তাহলে তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চেয়েছেন দাদা বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম মিয়া।

টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার ধুবরিয়া ইউনিয়নের পাইসানা গ্রামের মিয়া বাড়ির সন্তান শিলাস্তি রহমান। শনিবার দুপুরে সরজমিনে দেখা গেছে, বাড়িটি পুরোপুরি ফাঁকা। শিলাস্তিদের টিনের ঘরের দরোজায় তালা ঝুলছে। টিনের ঘরের পাশেই নির্মাণ করা হয়েছে দোতলা একটি বাড়ি। তবে বাড়ির ভেতরে কোনো আসবাবপত্র নেই।

এমপি আনার হত্যা: অপরাধী হলে শিলাস্তির বিচার চান দাদা
টাঙ্গাইলের নাগরপুর উপজেলার নাগরপুর পাইসানা গ্রামের মিয়া বাড়ির সন্তান শিলাস্তি (বাঁয়ে); দাদা সেলিম মিয়া। ছবি: নিউজবাংলা

এ সময় পাশের ঘর থেকে বেরিয়ে আসেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সেলিম মিয়া। তিনি শিলাস্তির বাবা আরিফুর রহমানের বাবার ছোট ভাই।

সেলিম মিয়া জানান, তার ভাতিজা আরিফুর রহমানের দুই সন্তান। শিলাস্তি বড় ও সুবাহ ছোট। তাদের কোনো ভাই নেই। আরিফুর রহমান একজন জুট ব্যবসায়ী। ছোট বেলা থেকেই তারা ঢাকার উত্তরায় বসবাস করেন। মাঝেমধ্যে গ্রামের বাড়িতে এলেও দুই/একদিন পরই আবার ঢাকায় চলে যান। গ্রামে পাড়া-প্রতিবেশী কারও সঙ্গেই ওদের তেমন কোনো কথাবার্তা হয় না।

তিনি বলেন, ‘আমার নাতনী শিলাস্তির চলাফেরা উচ্ছৃঙ্খল এবং বাড়ির বাইরে দিনের পর দিন সময় কাটায়। এসব কারণে ওদের সঙ্গে কথা বলা বাদ দিয়েছি। আমার পরিবারের লোকজনও ওদেরকে এড়িয়ে চলে।

‘বাড়িতে অল্প সময়ের জন্য এলেও শিলাস্তির যে ড্রেসআপ তা দেখে মনে হতো ওর বাবা কোটিপতি। সে বাড়িতে বসেই সবার সামনে সিগারেটও টানে। আমি বাধা দিলেও শুনতো না। পরে আর বাধা দেয়ারও চেষ্টা করিনি। আমার নাতনী শিলাস্তি অপরাধ করে থাকলে তার সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি করছি।’

স্থানীয় লোকজন জানায়, শিলাস্তি রহমান ও তার পরিবার দীর্ঘদিন ধরেই ঢাকায় বসবাস করে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর পরই শিলাস্তি রহমানের দাদার সম্পত্তি তার বাবা আরিফুর রহমান বিক্রি করে ঢাকায় চলে যায়। বাড়িটা থাকলেও তারা কেউ এখানে তেমন একটা আসে না।

এ বিষয়ে নাগরপুরের ধুবরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান খান বলেন, ‘ওরা অনেক আগে থেকেই ঢাকায় থাকে। কেউ সঠিকভাবে বলতেও পারে না যে শিলাস্তি কোথাকার। এখন আমরা জানতে পারলাম যে তার বাড়ি নাগরপুরে। গতকাল (শুক্রবার) পর্যন্তও বিষয়টি জানতাম না।

নাগরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসিম উদ্দিন বলেন, ‘শিলাস্তি নামের মেয়েটি নাগরপুরের- এমন কোনো তথ্য এখনও পাইনি। তার বিষয়েও আর কোনো তথ্য এখন পর্যন্ত আমার কাছে নেই। জানলে জানাতে পারব।’

আরও পড়ুন:
এমপি আনার হত্যা মামলায় ৩ আসামি রিমান্ডে
এনডিটিভির প্রতিবেদনে এমপি আনার হত্যার লোমহর্ষক বর্ণনা
হাজারও মানুষের জানাজায় অংশ নেয়া এমপি আনারের মরদেহই মিলছে না
মাঠের মাঝে শাহীনের রহস্যঘেরা বাংলো
এমপি আনার হত্যা নিয়ে কালীগঞ্জে ধোঁয়াশা!

মন্তব্য

বাংলাদেশ
RAB arrests 5 workers in Naogaon stops bus movement in protest

নওগাঁয় র‌্যাবের হাতে ৫ শ্রমিক আটক, প্রতিবাদে বন্ধ বাস চলাচল

নওগাঁয় র‌্যাবের হাতে ৫ শ্রমিক আটক, প্রতিবাদে বন্ধ বাস চলাচল নওগাঁ শহরের বালুডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে দুপুর ১২টা থেকে শ্রমিকরা জেলার অভ্যন্তরীণ রুটে সব বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা দিয়ে প্রতিবাদ করেন। ছবি: নিউজবাংলা
নওগাঁ জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এস এম মতিউজ্জামান মতি জানান, সকাল ১১টার দিকে র‌্যাব কোনো কারণ ছাড়াই পাঁচজন সদস্যকে আটক করে নিয়ে যায়। এর পর শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন।

নওগাঁ শহরের বাইপাস চেকপোস্ট থেকে মোটর মালিক ও শ্রমিক ইউনিয়নের পাঁচজন সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব

শনিবার বেলা ১১টার দিকে শহরের বাইপাস থেকে তাদের আটক করা হয়। এরপর দুপুর ১২টা থেকে নওগাঁ শহরের বালুডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে শ্রমিকরা জেলার অভ্যন্তরীণ রুটে সকল বাস চলাচল বন্ধ ঘোষণা দিয়ে প্রতিবাদ শুরু করেন।

রাস্তার মাঝখানে বাস দিয়ে ব্যারিকেড দিয়েছেন শ্রমিকরা। ফলে কোনো ধরনের যানবাহন যেতে পারছে না।

এদিকে বাস চলাচল বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পড়েছেন জনসাধারণ। তারা বাসে করে গন্তব্যে যেতে পারছেন না, তবে অটোরিকশা ও ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় বাড়তি ভাড়া দিয়ে গন্তব্যে যেতে হচ্ছে যাত্রীদের। রাজশাহীর যাত্রীবাহী বাস নওগাঁয় থাকায় তারা যাত্রী নিয়ে ফিরে যাচ্ছে।

নওগাঁ জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক এস এম মতিউজ্জামান মতি বলেন, ‘শহরের বালুডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দুরে নওগাঁ-রাজশাহী আঞ্চলিক মহাসড়কের শহরের বাইপাস চেকপোস্ট রয়েছে। যেখানে মোটর মালিকের নেতৃবৃন্দ শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্যরা থাকে।’

সকাল ১১টার দিকে র‌্যাব কোনো কারণ ছাড়াই পাঁচজন সদস্যকে আটক করে নিয়ে যায় বলে দাবি করেন তিনি। এর পর শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে বাস চলাচল বন্ধ করে দেন।

এ বিষয়ে র‌্যাবের পক্ষ থেকে কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

নওগাঁ সদর মডেল থানার ওসি জাহিদুল হক বলেন, ‘কেন বাস চলাচল বন্ধ করা হয়েছে, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে। আশা করছি দ্রুত সমস্যাটির সুহারা হয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন:
বনানীর আগে বাসে যাত্রী তুললেই মামলা: ডিএমপি কমিশনার
অবৈধ অভিবাসী ইস্যুতে ইতালির ‘নিরাপদ’ তালিকায় বাংলাদেশ
উপজেলা চেয়ারম্যান প্রার্থী আটক, প্রায় ২৩ লাখ টাকা জব্দ
ভয়ঙ্কর প্রতারক চক্রের ব্ল্যাকমেইলিংয়ের ফাঁদ, অবশেষে ধরা
তাপজনিত স্বাস্থ্য ঝুঁকি এড়াতে জাতীয় নির্দেশিকা আসছে

মন্তব্য

p
উপরে