× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Lets drive the bus over Mogo
hear-news
player
google_news print-icon

‘মোগো ওপর দিয়া বাস চালাইয়া যাউক’

মোগো-ওপর-দিয়া-বাস-চালাইয়া-যাউক
বরগুনা-নিশানবাড়িয়া সড়কে বেলা ২টার আগে কোনো ইজিবাইক চলতে পারবে না- বাস মালিক সমিতির এমন নির্দেশনা ও নানামুখী নির্যাতনের প্রতিবাদে বুধবার বরগুনা সদরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেন পাঁচ শতাধিক ইজিবাইক চালক।

‘গাড়ি লইয়া রাস্তায় নামলেই হেরা মোগো গাড়ি থামাইয়া দ্যায়, মোড়ো গাড়ি ফুডা হইর‌্যা যাত্রী নামাইয়া মাইর-ধইর করে। সরকারের রাস্তায় গাড়ি চালাই, হেরা আইন বানাইয়া মোগো গাড়ি চালাইতে দেয় না। গাড়ি না চালাইতে দেলে গুরাগার লই্যয়া কী খামু মোরা। আইছিলাম এমপি সাবের দারে। হে মোগো কোনো সমাধান দেয় নায়। এহন আর কিছু হরার নাই। গাড়ি রাস্তার মাঝে থুইয়া হুইয়া থাকমু, হেরা মোগো ওপর দিয়া বাস চালাইয়া যাউক।’

কথাগুলো ইজিবাইকচালক কামাল ভাণ্ডারীর। বাড়ি বরগুনা সদর উপজেলার এম নলটোনা ইউনিয়নের গর্জনবুনিয়া এলাকায়।

ইজিবাইক চলাচলে বাধা দেয়া, চালকদের মারধর ও গাড়ি ভাঙচুরের প্রতিবাদে ইজিবাইকচালকরা বুধবার দুপুরে বাস মালিক সমিতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে।

বরগুনা-নিশানবাড়িয়া সড়কের ৫ শতাধিক ইজিবাইকচালক এদিন সার্কিট হাউস মাঠে জড়ো হন। পরে সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে শহর প্রদক্ষিণ শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন তারা। পরে সেখানে বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও বরগুনার জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমানের কাছে তারা বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন।

বরগুনা-নিশানবাড়িয়া সড়কের ইজিবাইকচালক-মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ শান্ত বলেন, ‘এটা আঞ্চলিক মহাসড়ক না। ২৩ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সড়কে বাস মালিক সমিতি নিজেদের মতো আইন বানিয়েছে। বেলা ২টার আগ পর্যন্ত তারা এই সড়কে ইজিবাইক চলতে দেয় না।

‘আমরা এর আগে আন্দোলন করার পর এই অত্যাচার এতদিন বন্ধ ছিল। হঠাৎ করেই বাস মালিক সমিতি ঘোষণা দেয় যে ১ সেপ্টেম্বর থেকে এই সড়কে সকালে ইজিবাইক চলতে দেয়া হবে না। আগের নিয়মে বেলা ২টার পর চলবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সকাল থেকে এই রুটে অবাধে ইজিবাইক চালাতে চাই। বিষয়টি আমরা বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা প্রশাসককে জানিয়েছি। কিন্তু এমপি মহোদয় ও ডিসি স্যার আমাদের দাবির সঙ্গে একমত হননি। তারা বাস মালিক সমিতির কথামতো বেলা ২টার পর ইজিবাইক চালাতে বলেছেন। আমরা হতাশ হয়ে ফিরে এসেছি। এখন আমাদের মতো করে আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব। দাবি না মানা পর্যন্ত আমরা রাস্তা ছাড়ব না।’

মাইঠা চৌমুহুনী এলাকার ইজিবাইকচালক আল আমিন বলেন, ‘প্রতি সপ্তাহে আমাকে ছয় হাজার টাকা কিস্তি দিতে হয়। আমার ওয়াইফ অন্তঃসত্ত্বা। এ অবস্থায় গাড়ি চালাতে না পারলে আমার খুব বিপদ হবে। আমি রাস্তায় অবাধে গাড়ি চালাইতে চাই। এটা আমার অধিকার।’

গর্জনবুনিয়া এলাকার চালক মো. জুলহাস মিয়া বলেন, ‘বাস মালিক সমিতির লোকজন আমাদের ওপর অন্যায় করে। রাস্তায় আমাদের চলতে বাধা দেয়, যাত্রী নামিয়ে দিয়ে গাড়ির চাবি নিয়ে যায়, গাড়ি ভাঙচুর করে। আমরা স্বাধীন বাংলাদেশের নাগরিক। কেন আমাদের এমন অত্যাচারের শিকার হতে হবে। আমরা এর সমাধান চাই।’

জেলা প্রশাসক মো. হাবিবুর রহমান এ বিষয়ে বলেন, ‘ইজিবাইকচালকদের দাবিদাওয়া নিয়ে আমরা বাস মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করব। উভয় পক্ষের কথা শোনার পর কার্যকর সমাধানের পথ বের করার চেষ্টা করব।’

সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বলেন, ‘ইজিবাইকচালকরা খুবই নিডি। সংসার চালানোর জন্য রাস্তায় গাড়ি নিয়ে নেমে রুজি-রোজগার করে। আমি বাস মালিক সমিতির সঙ্গে কথা বলে বিষয়টির সুষ্ঠু সমাধানের চেষ্টা করব।'

আরও পড়ুন:
ইজিবাইকে চাঁদাবাজি: সাদিক-মনীষা মুখোমুখি
মহাসড়কে চলতে পারবে না ইজিবাইক: আপিল বিভাগ
ইজিবাইকচালক ও হাইওয়ে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া
ইজিবাইকে বাসের ধাক্কা, নিহত ২
অবৈধ ইজিবাইক বন্ধের নির্দেশ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Stabbed while praying in the mosque

মসজিদে নামাজরত অবস্থায় ছুরিকাঘাত

মসজিদে নামাজরত অবস্থায় ছুরিকাঘাত বাঘা থানা। ছবি: সংগৃহীত
জমি সংক্রান্ত একটি মামলার সাক্ষী তাপস। এর জেরেই তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানান বাঘা থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন।

রাজশাহীর বাঘায় মসজিদের ভেতরে নামাজে দাঁড়ানো অবস্থায় এক যুবককে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। এতে গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে সুচিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

৩৭ বছর বয়সী আহত আবু ফজল সিদ্দিক তাপস অগ্রণী ব্যাংকের বাজুবাঘা শাখার কর্মচারী এবং উপজেলার উত্তর কলিগ্রামের মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আবুল হোসেনের ছেলে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজের সময় তাপসকে ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।

মামলায় অভিযুক্ত মনিরুল ইসলাম জমজমকে ইতোমধ্যেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার বাঘা থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কলিগ্রাম জামে মসজিদে মাগরিবের নামাজ পড়ছিলেন তাপস। ঈমামের পেছনে ফরজ নামাজ আদায় করার সময় তাকে ছুরিকাঘাত করা হয়।

অভিযুক্ত মনিরুল ইসলাম জমজম মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করে তাপসকে পেছন থেকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান। এতে তাপসের বাম হাতে মারাত্মক জখমের সৃষ্টি হয়।

পরে মসজিদের মুসল্লিরা তাপসকে উদ্ধার করে বাঘা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। কিন্তু আঘাত গুরুতর হওয়ায় রাতেই তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

বাঘা থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন জানান, এ ঘটনায় রাতেই আহতের ভাই আবু বাশার জমজমের বিরুদ্ধে মামলা করেন। পরে শুক্রবার ভোরে ওই গ্রামেরই একটি আম বাগান থেকে জমজমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জমি সংক্রান্ত একটি মামলার সাক্ষী তাপস। এই বিরোধের জেরেই তার ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে একজনের মৃত্যু
দুর্গাপূজার স্টলে সহক‌র্মীর ছুরিকাঘাতে কি‌শোর নিহত
ঝালমুড়ি খেয়ে টাকা না দেয়ার জেরে ছুরিকাঘাতে নিহত
পরীবাগে ছুরিকাঘাতে ট্রান্সজেন্ডার নিহত
পূর্বশত্রুতার জেরে ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Presidents Tribute at the Tomb of the Father of the Nation

জাতির পিতার সমাধিতে রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা

জাতির পিতার সমাধিতে রাষ্ট্রপতির শ্রদ্ধা রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ। ছবি: সংগৃহীত
বিকেল পৌনে ৫টার দিকে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। পরে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ প্রথমবারের মতো পদ্মা সেতু পার হয়ে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া গেলেন।

শুক্রবার দুপুরে বঙ্গভবন থেকে সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হন তিনি। বিকেল ৪টা ৩৫ মিনিটে তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে পৌঁছেন।

সেখানে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহানা ।

বিকেল পৌনে ৫টার দিকে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পমাল্য অর্পন করেন। পরে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাতে অংশ নেন। এ সময় রাষ্ট্রপতির পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে ছিলেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে তিনি বঙ্গবন্ধু ভবনে পরিদর্শন বইয়ে সই করেন।

রাষ্ট্রপতি বিকেল সোয়া ৫টায় টুঙ্গিপাড়া থেকে কাশিয়ানীর কালনা সেতুর উদ্দেশ্যে যাত্রা করার কথা রয়েছে।

সন্ধ্যায় তিনি মধুমতি সেতু থেকে শিবচরের উদ্দেশে যাত্রা করবেন। সেখানে ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত ও ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী কলেজ মসজিদে যাবেন।

আরও পড়ুন:
‘ধর্ম দিয়ে কেউ যেন জনগণকে বিভ্রান্ত করতে না পারে, সজাগ থাকুন’
জীবনের দর্পণ সংস্কৃতি: রাষ্ট্রপতি
সরকারি অর্থ ব্যয়ে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি চান রাষ্ট্রপতি
রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দোরাইস্বামীর বিদায়ী সাক্ষাৎ
রাষ্ট্রপতির কাছে পরিচয়পত্র দিলেন কুয়েত ও নেপালের দূত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Nephew killed in pickup motorcycle collision

পিকআপ-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে ভাগনে নিহত

পিকআপ-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে  
ভাগনে নিহত প্রতীকী ছবি
মস্তফাপুর হাইওয়ে থানার ওসি গোলাম রসুল জানান, পিকআপটি জব্দ করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

মাদারীপুরের রাজৈরে মোটরসাইকেল-পিকআপ সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও একজন।

ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের কলাবাড়ি নামক স্থানে বৃহস্পতিবার রাতে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত হন ৩৫ বছরের হিরু শেখ ও আহত হয় তার মামা আলমগীর শেখ। হিরু উপজেলার টেকেরহাট ঘোষালকান্দি গ্রামের বাসিন্দা।

মস্তফাপুর হাইওয়ে থানার ওসি গোলাম রসুল নিউজবাংলাকে বিষয়টি জানান।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, মোটরসাইকেলে মাদারীপুর সদর থেকে টেকেরহাট যাচ্ছিলেন মামা আলমগীর ও তার ভাগনে হিরু। পথে বরিশালগামী একটি পিকআপের সঙ্গে তাদের মোটরসাইকেলের সংঘর্ষ হয়।

এ সময় প্রথমে রাজৈর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। পরে চিকিৎসক হিরুকে গুরুতর অবস্থায় ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

ওসি গোলাম রসুল জানান, পিকআপটি জব্দ করা হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
ট্রাকচাপায় অটোরিকশার দুই যাত্রী নিহত
গুলিস্তানে বিআরটিসির বাসের ধাক্কায় নারী নিহত
সাফজয়ীদের সংবর্ধনায় এসে দুর্ঘটনায় নিহত স্কুলছাত্র
ইলেকট্রিক মিস্ত্রিকে মৃত ঘোষণা, ঢামেকে লেগুনা ফেলে পালান চালক
দুই মোটরসাইকেলের সংঘর্ষে নিহত ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Ilisha hunting 4 people sentenced to one year in prison

ই‌লিশ শিকার: ৪ জ‌নকে এক বছ‌রের কারাদণ্ড

ই‌লিশ শিকার: ৪ জ‌নকে এক বছ‌রের কারাদণ্ড
বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে অ‌ভিযান চালিয়ে ৫ হাজার মিটার অ‌বৈধ কা‌রেন্ট জাল জব্দসহ ৬ জেলেকে আটক করে নৌ পু‌লিশ ইউনিট। শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে চারজনকে এক বছর করে জেল দেয়া হয়।

ব‌রিশা‌লে নি‌ষেধাজ্ঞা অমান্য ক‌রে নদী‌তে মা ই‌লিশ ধরায় চারজন‌কে এক বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ ছাড়া অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় মুচলেখা নিয়ে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে দুই কিশোরকে।

হিজলা নৌ পু‌লিশ ইউ‌নি‌টের প‌রিদর্শক বিকাশ চন্দ্র দে নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে অ‌ভিযান চালিয়ে ৫ হাজার মিটার অ‌বৈধ কা‌রেন্ট জাল জব্দসহ ৬ জেলেকে আটক করে নৌ পু‌লিশ ইউনিট। শুক্রবার ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে চারজনকে এক বছর করে জেল দেয়া হয়।

দণ্ডিতরা হলেন হিজলা উপ‌জেলার পূর্ব খা‌গেরচর এলাকার সাইফুল মল্লিক, নাজমুল শিকদার, নুরুল ইসলাম তালুকদার ও চর বি‌শো‌রের কাওসার মোল্লা।

অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় দুইজনকে মুচলেখা নিয়ে অভিভাবকদের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়। এছাড়া পুড়িয়ে ফেলা হয় জব্দ হওয়া কারেন্ট জাল।

আরও পড়ুন:
মধ্যরাত থেকে ২২ দিন নদীতে মাছ ধরা বন্ধ
নিষেধাজ্ঞায় ইলিশ বিক্রির শেষ দিনে বাজারে উপচে পড়া ভিড়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
He went out in the evening and found a dead body in the morning

সন্ধ্যায় বের হয়ে ভোরে মিলল গলা কাটা দেহ

সন্ধ্যায় বের হয়ে ভোরে মিলল গলা কাটা দেহ প্রতীকী ছবি
ওসি বলেন, ‘এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে। হত্যায় জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।’

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে এক ইজিবাইক চালকের গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সদর উপজেলার আটি গ্রামের ওয়াপদা কলোনি এলাকার একটি রাস্তার পাশ থেকে শুক্রবার ভোরে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ৪৫ বছরের সুজন মিয়া চাঁদপুরের গোবিন্দপুর গ্রামের সুরুজ মিয়ার ছেলে। সিদ্ধিরগঞ্জের মিজমিজি মনসুর মাস্টারের বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তিনি।

পরিবারের বরাতে ওসি বলেন, ‘প্রতিদিনের মতো বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়ও ইজিবাইক নিয়ে বের হন সুজন। রাতে কোনো এক সময় দুর্বৃত্তরা তাকে হত্যা করে মরদেহ রাস্তারপাশে ফেলে যায়। তার পাশেই ইজিবাইকটি পড়ে ছিল। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘হত্যায় জড়িতদের শনাক্ত ও গ্রেপ্তারে পুলিশ অভিযানে নেমেছে।’

আরও পড়ুন:
মা ও দুই ছেলের মরদেহ উদ্ধার, রহস্যের জট খোলেনি
নিজ ঘরে বৃদ্ধের মরদেহ
জঙ্গল থেকে হলমার্কের নিরাপত্তাকর্মীর মরদেহ উদ্ধার
বেলকুচিতে মা ও ২ সন্তানের মরদেহ উদ্ধার
হাত-পা বাঁধা অটোচালক কিশোরের মরদেহ উদ্ধার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prime Ministers tribute at Bangabandhus tomb in Tungipara

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা নিবেদন। ছবি: পিআইডি
সকাল ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু সমাধি সৌধের বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহাপাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।

সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধি সৌধ কমপ্লেক্সে শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী।

সকাল ১০টা ৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু সমাধি সৌধের বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহাপাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর গাড়ি বহর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের ২ নম্বর গেটে পৌঁছালে খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল, বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ তন্ময়, কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা শেখ ফজলে নাইম, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মুন্সি আতিয়ার রহমান, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলী খান, কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আয়নাল হোসেন, কোটালীপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ, টুঙ্গিপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল বাশার খায়ের, সাধারণ সম্পাদক বাবুল শেখ, টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল, টুঙ্গিপাড়া পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাইফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ফুরকান বিশ্বাস, গোপালগঞ্জ জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা, পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকাসহ অনেকে প্রধানমন্ত্রী ও তার ছোট বোনকে শুভেচ্ছা জানান।

বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ছোট বোন শেখ রেহানা বঙ্গবন্ধু ভবনে অবস্থান করছেন। সন্ধ্যা ৬টার দিকে প্রধানমন্ত্রী গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থেকে ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করবেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আসছেন বিকেলে
প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট: গ্রেপ্তার নারী কারাগারে
প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আসছেন বৃহস্পতিবার
সব ধর্মকে সম্মান দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The two banks are full of sound

বৈঠার ছলাৎ ছলাৎ শব্দে মুখরিত দুই পাড়

বৈঠার ছলাৎ ছলাৎ শব্দে মুখরিত দুই পাড় গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা। ছবি: নিউজবাংলা
সাংসদ ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা এবার জাঁকজমকপূর্ভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই খেলাকে কেন্দ্র করে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। স্থানীয়দের মাঝে যেন প্রাণ ফিরে এসেছে। আমার নির্বাচনি আসনের যেকোনো স্থানে এমন আয়োজন করা হলে আমার সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে।’

নদীর দুই পাড়ে হাজারো মানুষ। মাঝিরা নানা বর্ণের পোশাক পরা, নৌকাও বিচিত্র সাজে সজ্জিত যা সবার দৃষ্টি নন্দন করে। নৌকায় কাঁশি বাজিয়ে, মাঝিদের একত্র জয়ধ্বনিতে এবং গানের তালে তালে বৈঠার টানে অন্য সব নৌকাকে পেছনে ফেলে নিজেদের নৌকাকে সবার আগে নেয়ার চেষ্টা।

এটি হচ্ছে নওগাঁর ঐতিহ্যবাহী গুটার বিলে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতার চিত্র, যা অনুষ্ঠিত হয়েছে বৃহস্পতিবার। এ প্রতিযোগিতা উপভোগ করেন সব বয়সী মানুষরা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে সদর উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা শিকারপুর ইউনিয়নের সরাইল গ্রামবাসী এর আয়োজন করে। গ্রাম-বাংলার হারিয়ে যাওয়া নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা বিভিন্ন বয়সী হাজারো নারী-পুরুষ উপভোগ করেন। প্রতিযোগিতায় দুইটি গ্রুপে চারটি নৌকা অংশ নেয়।

প্রধান অতিথি হিসেবে নৌকা বাইচ খেলা উপভোগ করেন নওগাঁ-৫ (সদর আসন) আসনের সাংসদ ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন।

তিনি জানান, ঐতিহ্যবাহী এ গুটার বিলে বছরের বেশির ভাগ সময় পানি থাকে। এ বিলে গত প্রায় ৪২ বছর থেকে নৌকা বাইচ হয়ে আসছে। বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টা থেকে বিলে ডিঙি নৌকা ও শ্যালোমেশিন চালিত ছোট-বড় অসংখ্য নৌকা আসতে থাকে। আর বিকেল ৫টায় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয়রা জানায়, প্রতিযোগিতায় মূলত বড় নৌকা অংশ নেয় যাকে পানসি নৌকা বলে। মাঝিরা নানা বর্ণের পোশাক ও নৌকা বিচিত্র সাজে সজ্জিত দৃষ্টি নন্দন করে। দীর্ঘদিন পর নৌকা বাইচ হওয়ায় স্থানীয়দের মাঝে এক ধরনের উৎসব বিরাজ করছিল।

স্থানীয় দুবলহাটি গ্রামের জাহিদুল হক বলেন, ‘পরিবার নিয়ে এসেছি। দারুন উপভোগ করলাম নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা। প্রতিবছর যেন এমন আয়োজন করা হয় সেই প্রত্যাশা করছি।’

বৈঠার ছলাৎ ছলাৎ শব্দে মুখরিত দুই পাড়

নওগাঁ শহরের দয়ালের মোড় এলাকার বাসিন্দা আফসানা বেগম বলেন, ‘আমি স্বামী ও সন্তানকে নিয়ে এসেছি। অনেক দিন পর নৌকাবাইচ প্রতিযোগিতা দেখলাম। অনেক ভালো লাগলো গ্রাম-বাংলার এই খেলাটি।’

নৌকা বাইচ খেলায় প্রথম স্থান অর্জন করে হাঁসাইগাড়ী গ্রামের আলেফ মোল্লা।

আলেফ বলেন, ‘১৯৭৫ সাল থেকে খেলে আসছি। অনেকবার বিজয়ী হয়েছি এবং পুরস্কার নিয়ে আসছি। বাইচ খেলতে প্রায় ৬০-৬২ জন লাগে। এর মধ্যে ১৭-১৮ জন মাঝি এবং বাকি সবাই বৈঠা টানে। কেউ কাঁশি বাজিয়ে মাঝিদের জয়ধ্বনিতে উৎসাহ জোগায়। ভালো লাগা থেকেই নৌকা বাইচে অংশ নেয়া হয়, তেমনি দর্শকরা উপভোগ করেন। এখন পরবর্তী প্রজন্মও এই নৌকা বাইচ খেলা শিখেছে।’

স্থানীয় শিকারপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কাজী রুকুনূজ্জামান টুকু বলেন, ‘গ্রাম বাংলার এই খেলাটি হাজার-হাজার মানুষ উপভোগ করেছে। তাতে করে অংশগ্রহণকারীরাও বেশ উৎসাহিত হয়েছে। সমাজ থেকে মাদকমুক্ত নির্মূল করে যুব সমাজকে মোবাইল আসক্ত থেকে দূরে রাখতে সুস্থধারার এমন বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হবে। আমরা প্রতিবছর এমন আয়োজন করার উদ্যোগ নিব। আশা করছি অন্য এলকার মানুষরাও এটা দেখে অনুপ্রাণিত হবে।’

সাংসদ ব্যারিস্টার নিজাম উদ্দিন বলেন, ‘নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা এবার জাঁকজমকপূর্ভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই খেলাকে কেন্দ্র করে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়। স্থানীয়দের মাঝে যেন প্রাণ ফিরে এসেছে। আমার নির্বাচনি আসনের যেকোনো স্থানে এমন আয়োজন করা হলে আমার সব ধরনের সহযোগিতা থাকবে।’

আরও পড়ুন:
নৌকাডুবির ৩ দিন পর মিলল শিশুর মরদেহ
গড়াই নদীতে নৌকাডুবি: নিখোঁজ শিশু উদ্ধারে ডুবুরিদল
নৌকা ডুবে যাওয়ায় স্থগিত বাইচ
চিত্রায় নৌকাবাইচ ঘিরে উৎসব
কুমার নদে নৌকাবাইচ দেখতে মানুষের ঢল

মন্তব্য

p
উপরে