× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Dealers selling BADC fertilizer in market are in jail
hear-news
player
google_news print-icon

বিএডিসির সার বাজারে বিক্রি, ডিলার কারাগারে

বিএডিসির-সার-বাজারে-বিক্রি-ডিলার-কারাগারে
নোয়াখালীতে বিএডিসির সার বাজারে বিক্রির অভিযোগে দুইজনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। ছবি: নিউজবাংলা
কবিরহাট থানার ওসি জানান, স্থানীয়দের তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার পিকআপভর্তি সারসহ দুইজনকে আটক করে থানায় নেয়া হয়। এ ঘটনায় রোববার সকালে উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বাদী হয়ে কবিরহাট থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন।

নোয়াখালীর কবিরহাটে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) সার বিক্রির অভিযোগে ডিলারসহ দুইজনকে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

রোববার দুপুর ২টার দিকে তাদেরকে নোয়াখালীর মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে নিলে বিচারক মো. ইকবাল হোসাইন কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে শনিবার রাতে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলায় তাদেরকে কবিরহাটের করমবক্স বাজার গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন কবিরহাট উপজেলার নরোত্তমপুর ইউনিয়নের ফলহারি গ্রামের ৪৫ বছর বয়সী দেলোয়ার হোসেন মিলন এবং একই গ্রামের পিকআপ চালক গিয়াস উদ্দিন। দেলোয়ার বিএডিসির ডিলার।

কবিরহাট থানার ওসি মো.রফিকুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, স্থানীয়দের তথ্যের ভিত্তিতে শনিবার পিকআপভর্তি সারসহ দুইজনকে আটক করে থানায় নেয়া হয়। এ ঘটনায় রোববার সকালে উপজেলা সহকারী কৃষি কর্মকর্তা বাদী হয়ে কবিরহাট থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা করেন।

তিনি জানান, দুপুর ২টার দিকে ওই মামলায় দুই আসামিকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে নোয়াখালীর মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে নেয় পুলিশ। বিচারক তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

আরও পড়ুন:
সার না পেয়ে সড়ক অবরোধ কৃষকদের
ক্রেতা ভেবে বললেন সার নেই, ধরা খেয়ে দিলেন জরিমানা
সার নিয়ে তেলেসমাতি, গুদাম রক্ষায় পুলিশ
মজুত সার জব্দ, গুদাম সিলগালা
সারের দাম বৃদ্ধির প্রভাব পড়বে না উৎপাদনে: কৃষিমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Ban on Islami Bank for loans to 8 institutions

ইসলামী ব্যাংককে নিষেধাজ্ঞা ৮ প্রতিষ্ঠানের ঋণে

ইসলামী ব্যাংককে নিষেধাজ্ঞা ৮ প্রতিষ্ঠানের ঋণে বৈধ নথিপত্র ছাড়াই ৭ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা ঋণ দেয়ার অভিযোগ রয়েছে ইসলামী ব্যাংকের বিরুদ্ধে।
অল্প সময়ের ব্যবধানে বিপুল অঙ্কের ঋণ বাড়ানোর বিষয়টি সন্দেহের চোখে দেখছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ব্যাংকের মালিকানায় থাকা কোনো পক্ষ বেনামে এসব ঋণ নিতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে। এ জন্য বিষয়টি তদন্ত করবে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

নাবিল গ্রুপসহ আট প্রতিষ্ঠানে ইসলামী ব্যাংকের ঋণ বিতরণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংক। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এসব প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণ ছাড় বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক সোমবার সন্ধ্যায় ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে জরুরি তলব করে।

এর আগে নাবিল গ্রুপসহ আট প্রতিষ্ঠানকে ইসলামী ব্যাংক থেকে অনিয়মের মাধ্যমে আগ্রাসী ঋণ দেয়ার নথিপত্র সংগ্রহ করছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি দল পরিদর্শন করে এসব ঋণ অনিয়মের ব্যাখ্যা চেয়েছে।

নতুন কোম্পানি খুলে কিংবা আগে থেকে ঋণ রয়েছে এমন কিছু প্রতিষ্ঠানের নামে বিপুল অঙ্কের ঋণের প্রকৃত সুবিধাভোগী কারা, তা খতিয়ে দেখবে বাংলাদেশ ব্যাংক। নাবিল গ্রুপের ৭ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা ঋণের সুবিধাভোগী অন্য কোনো পক্ষ কি না, তার তদন্ত হবে বলে জানান কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘সংবাদপত্রে উঠে এসেছে ইসলামী ব্যাংক বেনামে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে ঋণ দিয়েছে। কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠানে অনিয়মের অভিযোগ উঠলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক নিয়ম অনুযায়ী তদন্ত পরিচালনা করে আসছে। যার ধারাবাহিকতায় কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ৩ সদস্যর একটি দল ইসলামী ব্যাংকের দেয়া ঋণ কেলেঙ্কারি নিয়ে তদন্ত শেষে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে প্রতিবেদন জমা দেবে।’

এর আগে গত সেপ্টেম্বরে নাবিল গ্রুপের বিষয়ে তদন্তের উদ্যোগ নিলেও তা অজ্ঞাত কারণে থেমে যায়। এখন নতুন করে বাংলাদেশ ব্যাংকের তিন সদস্যের একটি তদন্ত দল কাজ শুরু করেছে।

রাজশাহীকেন্দ্রিক নাবিল গ্রুপ ইসলামী ব্যাংক, সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক থেকে প্রায় সাড়ে ৯ হাজার কোটি টাকার ঋণ বের করে নিয়েছে বলে অভিযোগ আছে।

শুধু নাবিল গ্রুপের ঋণ নয়, এসব ঋণের সুবিধাভোগী ছাড়াও ইসলামী ব্যাংকের সব শাখা থেকে বিতরণ করা ৫০ কোটি টাকার বেশি ঋণের সুবিধাভোগী কারা, তা খতিয়ে দেখবে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তদন্ত দল। ঋণের কোনো অর্থ পাচার হয়েছে কিনা, হুন্ডি কারবারে ব্যবহার হয়েছে কি না, সেসব বিষয়ও যাচাই করবে।

এর মধ্যে ইসলামী ব্যাংক থেকে ৭ হাজার ২৪৬ কোটি টাকা ও বাকি অর্থ সোশ্যাল ইসলামী ও ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক থেকে বের করে নেয়া হয়। সব মিলিয়ে এ গ্রুপের নামে অনুমোদিত ঋণের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৯ হাজার ৫৮৫ কোটি টাকা। চলতি বছরের মার্চে তাদের ঋণের পরিমাণ ছিল ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা।

গত আগস্টে অস্বাভাবিক ঋণ অনুমোদনের বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরে আসার পর ইসলামী ব্যাংকে তাদের মোট ঋণের পরিমাণ ছিল ৪ হাজার ৫০ কোটি টাকা। ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত তা আরও বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা।

অল্প সময়ের ব্যবধানে বিপুল অঙ্কের ঋণ বাড়ানোর বিষয়টি সন্দেহের চোখে দেখছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ব্যাংকের মালিকানায় থাকা কোনো পক্ষ বেনামে এসব ঋণ নিতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে। এ জন্য বিষয়টি তদন্ত করবে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।

আরও পড়ুন:
নথিপত্র ছাড়াই নাবিল গ্রুপকে সাড়ে ছয় হাজার কোটি টাকা ঋণ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
On the way to the court the witness was beaten by the accused

আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত

আদালতে যাওয়ার পথে আসামিপক্ষের মারধরে সাক্ষী নিহত
ওসি জানান, সকালে মামলার বাদী সাত্তার ও তার ভাই আব্দুল খালেক আদালতে যেতে বাড়ি থেকে বের হন। আসামিদের বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। 

বগুড়ার ধুনটে মামলার সাক্ষী দিতে আদালতে যাওয়ার পথে সাক্ষীকে পিটিয়ে হত্যা করার অভিযোগ উঠেছে আসামিপক্ষের লোকজনের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ।

উপজেলার কালেরপাড়া ইউনিয়নের কোদলাপাড়া গ্রামে মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে আহত আব্দুল খালেককে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত ৬৫ বছরের খালেকের বাড়ি কোদলাপাড়া গ্রামে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ধুনট থানার ওসি রবিউল ইসলাম।

স্বজনদের বরাতে তিনি জানান, ৩ নভেম্বর কোদলাপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের চাল কেনার টাকা নিয়ে মারামারির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আব্দুস সাত্তার মসজিদের কোষাধ্যক্ষ মোজাম্মেল হক ও তার ছেলে ফজলুল হকসহ ৭ জনকে আসামি করে বগুড়া আদালতে মামলা করেন। সেই মামলার সাক্ষী ছিলেন সাত্তারের ভাই আব্দুল খালেক। বগুড়া আদালতে মঙ্গলবার মামলার হাজিরা ছিল।

ওসি জানান, সকালে মামলার বাদী সাত্তার ও তার ভাই আব্দুল খালেক আদালতে যেতে বাড়ি থেকে বের হন। আসামিদের বাড়ির পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় তাদের ওপর হামলা চালানো হয়।

নিহতের দেহ ময়নাতদন্ত শেষে দাফন করার পর পরিবার হত্যা মামলা করবে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

আরও পড়ুন:
চা দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা
মসজিদে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ী খুন
সাভারের নীলা হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য ২০ ফেব্রুয়ারি
দুই যুগ আগের হত্যা মামলায় ২ আসামির যাবজ্জীবন
কোথায় গেল আয়াতের টুকরা দেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Accused of killing husband for not registering the land

জমি লিখে না দেয়ায় স্বামীকে হত্যার অভিযোগ

জমি লিখে না দেয়ায় স্বামীকে হত্যার অভিযোগ
কাউনিয়া থানার ওসি আব্দুর রহমান মুকুল জানান, পারিবারিক বিষয় নিয়ে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হয়। রাত ১০টার দিকে বাসার ছাদে বসা ছিলেন ইকবাল। এ সময় পেছন থেকে বঁটি দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়েছেন পপি।

বরিশাল নগরীতে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে তার স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি হত্যার কথা স্বীকার করেছেন বলে দাবি পুলিশের।

নগরীর পলাশপুর এলাকায় সোমবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শেখ ইকবাল ক‌বিরের বাড়ি পলাশপুরের বৌ বাজার এলাকায়। তিনি লঞ্চের সুকানি ছিলেন। পক্ষাঘাতগ্রস্থ হওয়ার পর থেকে তিনি বাজারে অটোরিকশা চার্জ ও ভাড়া দেয়ার ব্যবসা করতেন। তার ও স্ত্রী জাফরিন আরা পপির সংসারে দুই সন্তান আছে।

কাউনিয়া থানার ওসি আব্দুর রহমান মুকুল এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, পারিবারিক বিষয় নিয়ে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হয়। রাত ১০টার দিকে বাসার ছাদে বসা ছিলেন ইকবাল। এসময় পেছন থেকে বটি দিয়ে তাকে এলোপাতারি কুপিয়েছেন পপি। আশপাশের লোকজন গিয়ে ইকবালকে শের-ই বাংলা মেডিক‌্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়। চিকিৎসকরা তাকে ঢাকায় রেফার করেন। ঢাকা নেয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়।

কাউনিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হরিদাস নাগ জানান, ঘটনার পরপরই পপিকে পুলিশ আটক করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি জানান যে, ইকবাল তার নামে জমি ও ভবন লিখে দিচ্ছিলেন না বলে তাদের মধ্যে কলহ চলছিল। এর জেরে সোমবার রাতে ঝগড়া হয়। এরপর ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি ইকবালকে হত্যা করেন।

এ ঘটনায় ইকবালের ভাতিজা মো. সোহাগ মঙ্গলবার মামলা করেছেন। সেই মামলায় পপিকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
মসজিদে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ী খুন
সাভারের নীলা হত্যা মামলার পরবর্তী সাক্ষ্য ২০ ফেব্রুয়ারি
দুই যুগ আগের হত্যা মামলায় ২ আসামির যাবজ্জীবন
কোথায় গেল আয়াতের টুকরা দেহ
শিশুর রক্তাক্ত মরদেহ বস্তায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Arms recovered from camp room in Osmani Medical hostel

ওসমানী মেডিক্যালের ছাত্রাবাসে ‌‌শিবিরের কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার

ওসমানী মেডিক্যালের ছাত্রাবাসে ‌‌শিবিরের কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের হোস্টেলে একটি কক্ষ থেকে অস্ত্র ও শিবিবের প্রচার সামগ্রী জব্দ করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
পুলিশ জানায়, ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রাবাসের শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন কক্ষ থেকে হকিস্টিক, কুড়ালসহ শিবিবের বিভিন্ন ধরনের প্রচার সামগ্রী জব্দ করা হয়েছে।

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের আবু সিনা ছাত্রাবাসের একটি বন্ধ কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ। কক্ষটি ছাত্রশিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানার পুলিশ হোস্টেলের একটি কক্ষে অভিযান চালিয়ে কুড়াল, হকিস্টিক, ক্রিকেট স্টাম্পসহ অস্ত্র উদ্ধার করে। এ সময় শিবিবের বিভিন্ন বই এবং প্রচার সামগ্রীও জব্দ করা হয়।

এমএজি ওসমানী মেডিক্যাল কলেজে পুলিশ বক্সের উপপরিদর্শক (এসআই) জুয়েল চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ আবু সিনা ছাত্রাবাসের দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন একটি কক্ষে দেশীয় অস্ত্র ও প্রচার সামগ্রী দেখতে পান ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। তারা কলেজ প্রশাসন ও পুলিশকে জানালে কক্ষটি খুলে হকিস্টিক, কুড়ালসহ শিবিবের বিভিন্ন ধরনের প্রচার সামগ্রী জব্দ করা হয়।

এসআই জুয়েল বলেন, অস্ত্র উদ্ধার করা হলেও ওই কক্ষে কাউকে পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘কক্ষটি শিবিরের নিয়ন্ত্রণাধীন। এটি বেশির ভাগ সময় বন্ধ থাকলেও শিবিরের নেতা-কর্মীরা প্রায়ই গোপনে এখানে জড়ো হন। আজ জানালা দিয়ে ছাত্রলীগের কর্মীরা কক্ষে অস্ত্রের মজুত দেখে পুলিশকে জানান।’

এ বিষয়ে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শিশির চক্রবর্তী বলেন, ‘ছাত্রাবাসের একটি কক্ষ থেকে পুলিশ কিছু দেশীর অস্ত্র ও শিবিরের বই উদ্ধার করেছে বলে শুনেছি। এই কক্ষ অনেকদিন ধরে প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিল। কোন ছাত্র থাকত না। এখানে কীভাবে অস্ত্র এলো খোঁজ নিয়ে দেখা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
জেলায় জেলায় শিবিরের শোডাউন
চট্টগ্রামে শিবিরের মিছিল
আ.লীগ নিয়ে ব্যঙ্গ করায় শিবির নেতার ১০ বছর জেল
রাজশাহীতে ১৫ ‘শিবির’ কর্মী আটক
বিজয় দিবসে শিবিরের মিছিল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The trial of two people including her husband in the murder case of heroine Shimu has begun

নায়িকা শিমু হত্যা মামলায় স্বামীসহ দুইজনের বিচার শুরু

নায়িকা শিমু হত্যা মামলায় স্বামীসহ দুইজনের বিচার শুরু চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু। ফাইল ছবি
শিমু হত্যা মামলায় তার স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল ও এস এম ফরহাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে আদালত। এর মাধ্যমে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এই অভিযোগ গঠন করেন।

চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমু হত্যা মামলায় তার স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল ও এস এম ফরহাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে আদালত। এর মাধ্যমে মামলার আনুষ্ঠানিক বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

মঙ্গলবার ঢাকার চতুর্থ অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম এই অভিযোগ গঠন করেন। একই সঙ্গে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ২৩ জানুয়ারি দিন ঠিক করেন বিচারক।

এর আগে চলতি বছরের ২০ জানুয়ারি ঢাকার মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে শিমুর স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু এস এম ফরহাদকে রিমান্ড চলাকালীন হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। ওই সময় আসামিরা স্বেচ্ছায় স্বীকারোক্তি দিতে সম্মত হওয়ায় তা রেকর্ডের আবেদন করা হয়।

সে আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে নোবেল ও ফরহাদ জবানবন্দি দেন। এরপর তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয় আদালত।

এর আগে ১৮ জানুয়ারি আসামিদের আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় হওয়া হত্যা মামলায় আসামিদের ১০ দিন করে রিমান্ডে নিতে আবেদন করেন উপপরিদর্শক (এসআই) চুন্নু মিয়া।

শুনানি শেষে ঢাকার মুখ্য বিচারিক হাকিম রাবেয়া বেগম তাদের তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন।

একই দিন কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় নোবেল ও তার বাল্যবন্ধুর নামে মামলা করেন শিমুর ভাই হারুনুর রশীদ। মামলায় অজ্ঞাতনামা কয়েকজনকেও আসামি করা হয়।

গত ১৭ জানুয়ারি সকাল ১০টার দিকে ঢাকার কেরানীগঞ্জ থেকে চিত্রনায়িকা শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শুরুতে পরিচয় মিলছিল না তার। উদ্ধারের রাতে মরদেহের ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিয়ে নাম-পরিচয় শনাক্ত করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

শিমুর মরদেহ রাখা হয় ঢাকার স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে। সেখানে যাওয়ার পরই শিমুর স্বামী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু ফরহাদকে আটক করে র‌্যাব।

ওই সময় দুজনের কাছ থেকে একটি রক্তমাখা প্রাইভেট কার জব্দ করা হয়। পরে তাদের পুলিশে হস্তান্তর করে র‌্যাব।

স্বামী ও দুই সন্তানকে নিয়ে রাজধানীর কলাবাগান এলাকার একটি বাসায় থাকতেন শিমু। ১৬ জানুয়ারি সকালে বাসা থেকে বেরিয়ে তিনি আর ফেরেননি। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া যায়।

এ ঘটনায় রাতেই কলাবাগান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। পরদিন কেরানীগঞ্জে খোঁজ মেলে তার মরদেহের।

আরও পড়ুন:
কাশিমপুর কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন চিত্রনায়িকা একা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
20 BNP leaders and activists accused in Gangni blast case

গাংনীতে বিস্ফোরণে মামলা, বিএনপির ২০ নেতা-কর্মী আসামি

গাংনীতে বিস্ফোরণে মামলা, বিএনপির ২০ নেতা-কর্মী আসামি গাংনীতে সোমবার রাতে ‘বোমা’ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। ছবি: নিউজবাংলা
গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, সোমবার রাতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মো. সাহিদুজ্জামান শিপু বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা ও বিস্ফোরক আইনে মামলা করেন। সেখানে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ২০ জনকে আসামি করা হয়।

মেহেরপুরের গাংনীতে বিকট শব্দে ‘বোমা’ বিস্ফোরণ ও তিনটি বোমাসদৃশ বস্তু উদ্ধারের ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে। মামলায় বিএনপির ২০ নেতা-কর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

মঙ্গলবার জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মো. শাহিদুজ্জামান শিপু বাদী হয়ে ১১ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৯ জনের বিরুদ্ধে গাংনী থানায় মামলাটি করেন।

প্রাথমিক তদন্তে এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পৌর যুবদলের সভাপতি সাহিদুল ইসলামকে ঘটনার রাতেই গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

মামলায় বলা হয়, সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ছাত্রলীগের একটি মিছিল গাংনী বাজার প্রদক্ষিণের সময় বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় বাজারের পাশে পরিত্যক্ত মৎস্য খামারের কাছে ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ শোনা যায়। এতে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ তিনটি বোমাসদৃশ বস্তু উদ্ধার করে।

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, সোমবার রাতে বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মো. সাহিদুজ্জামান শিপু বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা ও বিস্ফোরক আইনে মামলা করেন। সেখানে ১১ জনের নাম উল্লেখ করে ২০ জনকে আসামি করা হয়।

ওসি বলেন, মামলায় জড়িত সন্দেহে রাতেই একজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বাকিদের ধরতে কাজ করছে পুলিশ।

আরও পড়ুন:
জেরুজালেমে জোড়া বিস্ফোরণে নিহত কিশোর
ছাত্রলীগের মোটরসাইকেল বহরে ককটেল হামলা
এমপির ছেলের সভায় ককটেল বিস্ফোরণ
ইস্তাম্বুলে বিস্ফোরণ: নিরাপদে আছেন বাংলাদেশিরা  
ছেলের মরদেহ পেয়ে খুশি ইয়াছিনের বাবা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death penalty for killing wife without getting dowry

যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড

যৌতুক না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
টাকার জন্য ঝর্ণাকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন আবদুল। এর জেরে ২০০৯ সালের ২৪ জুন রাতে স্ত্রী ঝর্ণা আক্তারকে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দেন তিনি।

যৌতুকের টাকা না পেয়ে স্ত্রীকে হত্যার দায়ে কুমিল্লায় এক আসামিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল ১ নম্বর আদালতের বিচারক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ আল মামুন মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই রায় দেন।

দণ্ড পাওয়া আসামি হলেন চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কোমারডগা গ্রামের আবদুল কাদের। মামলার অন্য তিন আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল আদালতের স্পেশাল পিপি প্রদীপ কুমার দত্ত।

তিনি রায়ের আদেশের বরাতে জানান, বিয়ের সময় আবদুল কাদের ৫০ হাজার টাকা যৌতুক চেয়েছিলেন। সে সময় স্ত্রী ঝর্ণা আক্তারের পরিবার ২০ হাজার টাকা দিয়েছিল। বিয়ের পর থেকে বাকি টাকার জন্য ঝর্ণাকে প্রায়ই নির্যাতন করতেন তিনি। এর জেরে ২০০৯ সালের ২৪ জুন রাতে আবদুল কাদের তার স্ত্রী ঝর্ণা আক্তারকে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দেয়।

এ ঘটনায় ঝর্ণার বড় বোন খালেদা বেগম চৌদ্দগ্রাম হত্যা মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
ঘরে ঢুকে রোহিঙ্গা মাঝিকে ছুরিকাঘাতে হত্যা
নায়িকা শিমু হত্যা মামলায় স্বামীসহ দুইজনের বিচার শুরু
টিপু-প্রীতি হত্যা: তদন্ত প্রতিবেদন ১১ জানুয়ারি
চা দোকানিকে কুপিয়ে হত্যা
মসজিদে যাওয়ার পথে ব্যবসায়ী খুন

মন্তব্য

p
উপরে