× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Today is the 17th anniversary of the nationwide series of bombings
hear-news
player
google_news print-icon

দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার ১৭ বছর আজ

দেশব্যাপী-সিরিজ-বোমা-হামলার-১৭-বছর-আজ
সাতক্ষীরার পাঁচ স্থানে সিরিজ বোমা হামলা মামলার ১৬ বছর পর ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে ১৯ আসামির মধ্যে ১৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালত। ফাইল ছবি
পুলিশ জানায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় সারা দেশে ১৫৯টি মামলার মধ্যে ৯৪টির বিচার সম্পন্ন হয়েছে। এসব মামলায় ৩৩৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। এখন ৫৫টি মামলা বিচারের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে আসামির সংখ্যা হচ্ছে ৩৮৬ জন।

দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার ১৭তম বছর আজ। ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট জামা'আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) নামের জঙ্গি সংগঠন পরিকল্পিতভাবে দেশের ৬৩ জেলায় একই সময়ে বোমা হামলা চালায়।

মুন্সীগঞ্জ ছাড়া সব জেলায় প্রায় পাঁচ শ পয়েন্টে বোমা হামলায় দুজন নিহত ও অন্তত ১০৪ জন আহত হন।

পুলিশ সদর দপ্তর ও র‌্যাবের তথ্য অনুযায়ী, ঘটনার পরপরই সারা দেশে ১৫৯টি মামলা করা হয়।

এর মধ্যে ডিএমপিতে ১৮টি, সিএমপিতে ৮টি, আরএমপিতে ৪টি, কেএমপিতে ৩টি, বিএমপিতে ১২টি, এসএমপিতে ১০টি, ঢাকা রেঞ্জে ২৩টি, চট্টগ্রাম রেঞ্জে ১১টি, রাজশাহী রেঞ্জে ৭টি, খুলনা রেঞ্জে ২৩টি, বরিশাল রেঞ্জে ৭টি, সিলেট রেঞ্জে ১৬টি, রংপুর রেঞ্জে ৮টি, ময়মনসিংহ রেঞ্জে ৬টি ও রেলওয়ে রেঞ্জে ৩টি।

সংবাদ সংস্থা বাসসের প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে আসে।

এসব মামলার মধ্যে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয় ১৪২টি মামলায়। বাকি ১৭টি মামলায় ঘটনার সত্যতা থাকলেও আসামি শনাক্ত করতে না পারায় চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়া হয়নি।

এসব মামলায় এজাহারভুক্ত আসামি ছিলেন ১৩০ জন। গ্রেপ্তার করা হয় ৯৬১ জনকে। ১ হাজার ৭২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হয়।

পুলিশ জানায়, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলার ঘটনায় সারা দেশে ১৫৯টি মামলার মধ্যে ৯৪টির বিচার সম্পন্ন হয়েছে। এসব মামলায় ৩৩৪ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেয়া হয়েছে। এখন ৫৫টি মামলা বিচারের অপেক্ষায় রয়েছে। এতে আসামির সংখ্যা হচ্ছে ৩৮৬ জন।

এই সিরিজ বোমা হামলার রায় দেয়া মামলাগুলোর ৩৪৯ জনকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। আসামিদের মধ্যে ২৭ জনের বিরুদ্ধে ফাঁসির রায় দেয়া হয়। এর মধ্যে ৮ জনের ফাঁসি ইতোমধ্যে কার্যকর করা হয়েছে।

এসব মামলায় খালাস পেয়েছে ৩৫৮ জন, আর জামিনে রয়েছে ১৩৩ জন আসামি। এ ছাড়া ঢাকায় বিচারাধীন ৫টি মামলা সাক্ষ্যগ্রহণের শেষপর্যায়ে রয়েছে।

ঝালকাঠি জেলার দুই বিচারককে হত্যার জন্য ২০০৭ সালের ৩০ মার্চ ছয় জঙ্গি নেতা শায়খ আবদুর রহমান, তার সেকেন্ড-ইন-কমান্ড সিদ্দিকুল ইসলাম বাংলা ভাই, সামরিক কমান্ডার আতাউর রহমান সানি, চিন্তাবিদ আব্দুল আউয়াল, খালেদ সাইফুল্লাহ ও সালাউদ্দিনকে ফাঁসি দেয়া হয়।

বিএনপি জামায়াতের শাসন আমলে (২০০১ থেকে ২০০৬) সরকারি এমপি-মন্ত্রীদের সরাসরি মদদে সারা দেশে শক্ত অবস্থান তৈরি করে জঙ্গিরা।

২০০৫ সালের পরবর্তী সময়ে কয়েকটি ধারাবাহিক বোমা হামলায় বিচারক ও আইনজীবীসহ ৩০ জন নিহত হন। আহত হন ৪ শতাধিক।

ওই বছরের ৩ অক্টোবর চট্টগ্রাম, চাঁদপুর ও লক্ষ্মীপুরের আদালতে জঙ্গিরা বোমা হামলা চালায়। এতে তিনজন নিহত এবং বিচারকসহ কমপক্ষে ৫০ জন আহত হন।

এর কয়েক দিন পর সিলেটে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক বিপ্লব গোস্বামীর ওপর বোমা হামলার ঘটনায় তিনি এবং তার গাড়িচালক আহত হন।

১৪ নভেম্বর ঝালকাঠিতে বিচারক বহনকারী গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা হামলা চালায় আত্মঘাতী জঙ্গিরা। এতে নিহত হন ঝালকাঠি জেলা জজ আদালতের বিচারক জগন্নাথ পাড়ে এবং সোহেল আহম্মদ। এই হামলায় আহত হন অনেক মানুষ।

সবচেয়ে বড় জঙ্গি হামলার ঘটনা ঘটে ২৯ নভেম্বর গাজীপুর বার সমিতির লাইব্রেরি এবং চট্টগ্রাম আদালত প্রাঙ্গণে। গাজীপুর বার লাইব্রেরিতে আইনজীবীর পোশাকে প্রবেশ করে আত্মঘাতী এক জঙ্গি বোমার বিস্ফোরণ ঘটায়। এই হামলায় আইনজীবীসহ ১০ জন নিহত হন। আত্মঘাতী হামলাকারী জঙ্গিও নিহত হয় ।

একই দিন চট্টগ্রাম আদালত চত্বরে জেএমবির আত্মঘাতী জঙ্গিরা বিস্ফোরণ ঘটায়। সেখানে রাজিব বড়ুয়া নামের এক পুলিশ কনস্টেবল এবং একজন পথচারী নিহত হন। পুলিশসহ প্রায় অর্ধশত আহত হন ।

১ ডিসেম্বর গাজীপুর ডিসি অফিসের গেটে আবারও বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সেখানে নিহত হন গাজীপুরের কৃষি কর্মকর্তা আবুল কাশেম। এই ঘটনায় কমপক্ষে ৪০ জন আহত হন।

৮ ডিসেম্বর নেত্রকোনায় ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নেত্রকোনা শহরের বড় পুকুরপার উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর অফিসের সামনে বোমা বিস্ফোরণ ঘটায় আত্মঘাতী জঙ্গিরা। সেখানে স্থানীয় উদীচীর দুই নেতাসহ ৮ জন নিহত হন। শতাধিক আহত হন ।

আরও পড়ুন:
নব্য জেএমবির তিন সদস্য কারাগারে
‘মোর পোলারে যারা জঙ্গি বানাইছে হ্যাগোও বিচার চাই’
নব্য জেএমবি ‘সদস্য’ গ্রেপ্তার
নব্য জেএমবির ‘প্রধান বোমা কারিগর’ গ্রেপ্তার
সিরাজগঞ্জের সেই চার জেএমবি সদস্য কারাগারে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The new DG of RAB took charge

দায়িত্ব নিলেন র‍্যাবের নতুন ডিজি

দায়িত্ব নিলেন র‍্যাবের নতুন ডিজি র‍্যাবের নতুন মহাপরিচালক খুরশীদ হোসেন। ছবি: সংগৃহীত
খুরশীদ হোসেন ১২তম বিসিএস ব্যাচের কর্মকর্তা। এর আগে পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

এলিট ফোর্স র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন বা র‍্যাবের মহপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন অতিরিক্ত আইজিপি এম খুরশীদ হোসেন।

শুক্রবার বিকেলে তিনি নতুন এ দায়িত্ব গ্রহণ করেন।

বাহিনীটির আইন ও গণমাধ্যম শাখা থেকে পাঠানো এক ক্ষুদেবার্তায় এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ২২ সেপ্টেম্বর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে এম খুরশীদ হোসেনকে র‍্যাবের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব দেয়ার কথা জানায়। এরপর র‍্যাবের সদ্য সাবেক ডিজি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুনের স্থলাভিষিক্ত হন তিনি।

খুরশীদ হোসেন ১২তম বিসিএস ব্যাচের কর্মকর্তা। এর আগে পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি।

র‍্যাব প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া খুরশীদ হোসেনের জন্ম গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীতে।

দায়িত্ব নিয়ে শনিবার সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি, বনানী কবরস্থান ও রাজারবাগে পুলিশ স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন তিনি।

আরও পড়ুন:
ঘরের দরজা ভেঙে যুবদল নেতাকে তুলে নেয় র‍্যাব: বিএনপি
এসডিজি-৬ অর্জনে পানি ও স্যানিটেশনে অর্থায়ন বাড়ানোর পরামর্শ
কল রেকর্ড সংক্রান্ত তথ্যটি গুজব: র‍্যাব
নারিন্দায় র‍্যাবের অভিযান, বাড়ি ঘেরাও
স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজিসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য শুরু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chowdhury Abdullah Al Mamun took charge as IGP

আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব নিলেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন

আইজিপি হিসেবে দায়িত্ব নিলেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন। ছবি: সংগৃহীত
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ২২ সেপ্টেম্বর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আবদুল্লাহ আল-মামুনকে বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) হিসেবে মনোনীত করা হয়।

বাংলাদেশ পুলিশের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন।

শুক্রবার তিনি পুলিশ সদর দপ্তরে নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন বলে এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। বেনজীর আহমেদের স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন আবদুল্লাহ আল-মামুন।

এর আগে র‌্যাব মহাপরিচালক হিসেবে দুই বছরের বেশি সময় দায়িত্ব পালন করেছেন আবদুল্লাহ আল-মামুন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ২২ সেপ্টেম্বর প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আবদুল্লাহ আল-মামুনকে বাংলাদেশ পুলিশের ইন্সপেক্টর জেনারেল (আইজিপি) হিসেবে মনোনীত করা হয়।

আইজিপি হিসেবে নিয়োগের আগে চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন ২০২০ সালের ১৫ এপ্রিল করোনা মহামারির সময় র‌্যাব মহাপরিচালকের দায়িত্ব নেন। দুই বছর পর তাকে এই পদে নিয়োগ দেয় সরকার।

চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন অষ্টম বিসিএস ব্যাচের কর্মকর্তা। ১৯৬৪ সালের ১২ জানুয়ারি সুনামগঞ্জের শাল্লা উপজেলার শ্রীহাইল গ্রামে তিনি জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি পুলিশ সদর দপ্তরের ডিআইজি (প্রশাসন), রেঞ্জ ডিআইজি হিসেবে ময়মনসিংহ ও ঢাকা রেঞ্জের মতো গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে ছিলেন। এরপর পদোন্নতি পেয়ে অতিরিক্ত আইজিপির দায়িত্ব পান।

র‌্যাবের ডিজি হিসেবে যোগদানের আগে তিনি সিআইডি প্রধান হিসেবে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করেন।

অন্যদিকে শুক্রবারই চাকরির মেয়াদ শেষ হয় বিদায়ী আইজিপি বেনজীর আহমেদের।

আরও পড়ুন:
অবসরে যাচ্ছেন আইজিপি বেনজীর
সন্ত্রাসবাদ মাথাচাড়ার চেষ্টা করলে অবাক হওয়ার কিছু নেই: আইজিপি
স্বাধীনতার ৩০ বছরই আমরা গণতন্ত্রের দেখা পাইনি: আইজিপি
সাইবার অপরাধ দমনে পুলিশের সক্ষমতা বাড়াবে ইন্টারপা: আইজিপি
আইজিপি ও জাতিসংঘ পুলিশ প্রধানের বৈঠক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
574 girls were raped in 8 months

দেশে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার ৭১ কন্যাশিশু

দেশে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার ৭১ কন্যাশিশু প্রতীকী ছবি
পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রেমের অভিনয় ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৪৯ কন্যাশিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষণের পর ২০ জনকে হত্যা করা হয়েছে। গত আট মাসে ১৮৬ কন্যাশিশুকে হত্যা করা হয়েছে। আত্মহত্যা করেছে ১৮১ কন্যাশিশু।

চলতি বছরের প্রথম আট মাসে সারা দেশে ৫৭৪ কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। সেই হিসাবে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে ৭১ শিশু।

আট মাসে ৩৬৪ কন্যাশিশু একক ধর্ষণের শিকার হয়েছে। দলবদ্ধ ধর্ষণের শিকার ৮৪ জন। বাদ যায়নি বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন (প্রতিবন্ধী) ৪৩ কন্যাশিশুও। এ ছাড়া ৮৭ কন্যাশিশুকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে।

জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরাম আয়োজিত এক পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে৷ চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত ২৪টি জাতীয়, স্থানীয় দৈনিক ও অনলাইন পত্রিকা থেকে এসব তথ্য সংগ্রহ করা হয়।

সংগঠনটির হিসাব অনুযায়ী, প্রতি মাসে ৭১ কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়। প্রতিদিনের হিসাবে এই সংখ্যা দাঁড়ায় দুইজনের বেশি। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড হওয়া সত্ত্বেও এ ধরনের ঘটনা ক্রমেই বেড়ে চলছে বলে জানিয়েছে সংগঠনটি।

শুক্রবার রাজধানীর প্রেস ক্লাবে জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সম্পাদক নাসিমা আক্তার জলি এ পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন।

পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রেমের অভিনয় ও বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৪৯ কন্যাশিশুকে ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষণের পর ২০ জনকে হত্যা করা হয়েছে। গত আট মাসে ১৮৬ কন্যাশিশুকে হত্যা করা হয়েছে। আত্মহত্যা করেছে ১৮১ কন্যাশিশু।

দেশে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার ৭১ কন্যাশিশু

প্রেস ক্লাবে জাতীয় কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সম্পাদক নাসিমা আক্তার জলি পর্যবেক্ষণ প্রতিবেদন তুলে ধরেন। ছবি: নিউজবাংলা

গত আট মাসে ২ হাজার ৩০১ কন্যাশিশুর বাল্যবিয়ে হয়েছে, যা গড়ে প্রতি মাসে দাঁড়ায় ২৮৮ জন৷ এ আট মাসে ৫৮৯ বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়। এই সময়ে পাচার হয়েছে ১৩৬ কন্যাশিশু, যাদের মধ্যে ৭৪ জনকে অপহরণ করা হয়৷

এ ছাড়া যৌতুকের কারণে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৩ জন। যৌতুক দিতে না পারায় পাঁচ কন্যাশিশু আত্মহত্যা করে।

অনুষ্ঠানে কন্যাশিশু অ্যাডভোকেসি ফোরামের সভাপতি ড. বদিউল আলম মজুমদারসহ সংগঠনের অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
ব্যাংকের সিঁড়িতে শিশু, পাশে কাপড়-ফিডারের ব্যাগ
ডোবায় মিলল ভাই-বোনের মরদেহ
ধর্ষণের পর হত্যায় ১১ বছর পর ৯ জনের যাবজ্জীবন
রাতে শিশুটিকে ডোবায় ফেলে এসে ঘুমিয়ে পড়েন বাবা
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ধর্ষণের অভিযোগে ওয়ার্ডবয় গ্রেপ্তার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Earthquake in Myanmar mild shaking in Bangladesh

মিয়ানমারে ভূমিকম্প, মৃদু কম্পন বাংলাদেশে

মিয়ানমারে ভূমিকম্প, মৃদু কম্পন বাংলাদেশে
আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিয়ানমার। আমাদের দেশে ভোরে মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছে। তবে দেশের কোন অঞ্চলে এমন কম্পন অনুভূত হয়েছে, এর কোনো সঠিক তথ্য নেই।’

মিয়ানমারে সৃষ্ট ভূমিকম্পে শুক্রবার ভোরে সারা দেশে মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থার (ইউএসজিএস) তথ্য অনুযায়ী, স্থানীয় সময় ভোর ৪টা ২২ মিনিটে মিয়ানমারের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর মওলাইকে ভূমিকম্প আঘাত হানে। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৬।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মিয়ানমার। আমাদের দেশে ভোরে মৃদু কম্পন অনুভূত হয়েছে। তবে দেশের কোন অঞ্চলে এমন কম্পন অনুভূত হয়েছে, এর কোনো সঠিক তথ্য নেই। যেহেতু আমাদের দেশে এর উৎপত্তিস্থল ছিল না, তাই আমরা এখনও নির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাইনি।’

ইউরোপীয় ভূমধ্যসাগরীয় সিসমোলজিক্যাল সেন্টারের (ইএমএসসি) তথ্য অনুযায়ী, ভূমিকম্পটির উৎপত্তি মিয়ানমারের মনিওয়া থেকে প্রায় ১১২ কিলোমিটার উত্তর ও উত্তর-পশ্চিমে, সেখানে এর গভীরতা ছিল ১৪৪ কিলোমিটার।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকেই ভূমিকম্প অনুভূত হওয়ার ব্যাপারে উল্লেখ করেছেন। দেশের পার্বত্য অঞ্চলের সঙ্গে মিয়ানমারের সংযোগ থাকার ফলে অনেকেই পোস্ট দিয়ে জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম, বান্দরবান, রাঙ্গামাটিসহ সীমান্তবর্তী এলাকায় কম্পনের পরিমাণ বেশি ছিল।

আরও পড়ুন:
খুলনা, যশোর ও চুয়াডাঙ্গায় ভূমিকম্প
সব জরাজীর্ণ ভবন ভাঙা হবে: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী
চট্টগ্রামে পাঁচ মাসে ৫ ভূকম্পন বড় ভূমিকম্পের বার্তা?

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Amir in hospital with stomach pain

পেটে পীড়া নিয়ে হাসপাতালে হেফাজতের আমির

পেটে পীড়া নিয়ে হাসপাতালে হেফাজতের আমির হেফাজতে ইসলামের আমির মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। ফাইল ছবি
হেফাজতের প্রচার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী বলেন, ‘আমাদের আমির বৃহস্পতিবার হঠাৎ পেটে ব্যথা অনুভব করেন। পরবর্তী সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে চট্টগ্রাম ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, তবে উনার শারীরিক পরিস্থিতি সিরিয়াস নয়।’

পেটের পীড়া নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির মুফতি মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী।

চট্টগ্রামের বেসরকারি ন্যাশনাল হাসপাতালে বৃহস্পতিবার তাকে ভর্তি করা হয়।

নিউজবাংলাকে শুক্রবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন হেফাজতের প্রচার সম্পাদক মাওলানা মুহিউদ্দীন রাব্বানী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের আমির বৃহস্পতিবার হঠাৎ পেটে ব্যথা অনুভব করেন। পরবর্তী সময়ে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী তাকে চট্টগ্রাম ন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়, তবে উনার শারীরিক পরিস্থিতি সিরিয়াস নয়।’

জুনায়েদ বাবুনগরীর মৃত্যুর পর ২০২১ সালের ২৯ আগস্ট হেফাজতে ইসলামের আমির হিসেবে দায়িত্ব পান মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। তিনি বাবুনগরীর মামা।

আরও পড়ুন:
শফীর ছেলে হেফাজতের কমিটিতে
বাবুনগরী ফের আমির, জায়গা পাননি মামুনুল
হেফাজতের তাণ্ডব: সাবেক সাংসদ শাহীনুর কারাগারে
হেফাজতের আরেক কেন্দ্রীয় নেতা গ্রেপ্তার
তাণ্ডবের বিচার চেয়ে হেফাজত ছাড়লেন রহিম কাসেমী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Vapsa is hot and cold

ভ্যাপসা গরম কমার আভাস

ভ্যাপসা গরম কমার আভাস গরম থেকে বাঁচার চেষ্টা রিকশাচালকের। ফাইল ছবি
আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাগরে কাল (শনিবার) একটা লঘুচাপ হতে পারে। লঘুচাপের পর বৃষ্টি বাড়বে। এরপর একটু গরম কমার সম্ভাবনা আছে।’

কয়েক দিন ধরে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ভ্যাপসা গরম থাকলেও বৃষ্টির দেখা মিলছে কম, তবে সাগরে সৃষ্ট লঘুচাপে শনিবার থেকে বৃষ্টির পর গরম কমতে পারে বলে আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ বজলুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাগরে কাল (শনিবার) একটা লঘুচাপ হতে পারে। লঘুচাপের পর বৃষ্টি বাড়বে। এরপর একটু গরম কমার সম্ভাবনা আছে।’

রাজধানীতে কেমন গরম

ঢাকার রমনা এলাকায় গুগল ওয়েদারে তাপমাত্রা ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস দেখালেও রিয়েল টাইম অনুভূতি ৪০ ডিগ্রি। আর্দ্রতা শতকরা ৬৭ ভাগ। দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে গরমের আধিক্য বাড়তে থাকবে।

মরুর দেশ সৌদি আরবের রাজধানী জেদ্দায় তাপমাত্রা ২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলেও অনুভূতি ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। মরুতে বৃষ্টি না হলেও গরমের অনুভূতি বাংলাদেশের চেয়ে কম।

এমন গরম কমার আশার কথা জানিয়ে বজলুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শনিবার ভোর থেকে লঘুচাপের সৃষ্টি হবে। শনিবার ও রোববার বৃষ্টি বাড়বে, তবে এরপরও গরম থেকে নিস্তার নেই। সূর্যের দক্ষিণ গোলার্ধে গমনের ফলে আস্তে আস্তে ঠান্ডা আসবে। মৌসুমি বায়ু এখনও আছে। এক সপ্তাহ পর এটি চলে যাবে।’

বৃহস্পতিবার সারা দেশের সর্বোচ্চ ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল ভোলায়। সর্বনিম্ন ২৩ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা ছিল কিশোরগঞ্জের নিকলীতে। ওই দিন সিরাজগঞ্জের তাড়াশে সর্বোচ্চ ৪১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়।

পূর্বাভাস

আবহাওয়া অধিদপ্তরের বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার পূর্বাভাসে বলা হয়, মৌসুমী বায়ুর অক্ষ পূর্ব উত্তর প্রদেশ, বিহার, পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর একটি বর্ধিতাংশ উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমী বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরের অন্যরা দুর্বল থেকে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

এতে উল্লেখ করা হয়, রংপুর ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গা এবং রাজশাহী, ঢাকা, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল ও সিলেট বিভাগের দুই-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া ও বিদ্যুৎ চমকানোসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরণের ভারি বর্ষণ হতে পারে।

সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলে পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
নিম্নচাপ ঝাড়খণ্ডে, দুর্বল হচ্ছে ক্রমশ
দ‌ক্ষিণের নিম্নাঞ্চল প্লা‌বিত, সব নদী বিপৎস‌ীমার উপরে
এবার বর্ষায় অস্বাভাবিক কম বৃষ্টি
ভারি বৃষ্টি বৃহস্পতিবার থেকে
এমন দাবদাহ ২০৬০ পর্যন্ত: জাতিসংঘ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP is not a knee jerk party Fakhrul

বিএনপি হাঁটুভাঙা দল নয়: ফখরুল

বিএনপি হাঁটুভাঙা দল নয়: ফখরুল ছাত্রদলের সমাবেশে বিএনপি মহাসচিব ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: নিউজবাংলা
সরকারের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘উল্টাপাল্টা কথা না বলে আপনারা পদত্যাগ করুন। সেইভ এক্সজিট নিন, একটা নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন, সংসদ বিলুপ্ত করুন।’

বিএনপি হাঁটুভাঙা দল নয়, বরং আওয়ামী লীগ কোমরভাঙা দল। আন্দোলনে জনসম্পৃক্তা দেখে এখন আওয়ামী লীগের কোমর ভেঙে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রাজধানীতে এক সমাবেশে বৃহস্পতিবার তিনি এ কথা বলেন।

নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ছাত্রদল এ সমাবেশের আয়োজন করে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের মন্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমাদের যে হাঁটু ভাঙেনি, এটা তো এখন তারা টের পাচ্ছেন। আন্দোলনে জনসম্পৃক্ততা দেখে ইতোমধ্যে তাদের কোমর ভেঙে গেছে। তারা শুধু লাঠি নয়, রামদা-তলোয়ার এবং পুলিশের বন্দুকে ভর করে চলছে।

‘আওয়ামী লীগ একটা সন্ত্রাসী দল। তারা সোনার ছেলেদের হাতে বন্দুক-পিস্তল-লাঠি সবকিছু তুলে দিয়েছে। তারা জনগণের সঙ্গে নেই, সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সে জন্য রাষ্ট্রযন্ত্র ব্যবহার করে ক্ষমতায় টিকতে হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আন্দোলনে জেগে উঠছে মানুষ। আর তা দমাতে সন্ত্রাসের আশ্রয় নিচ্ছে তারা। কর্মসূচি সামাল দিতে তারা পাঁচজনকে গুলি করে হত্যা করেছে, মিথ্যা মামলা দিয়ে ২৫ হাজারের ওপর নেতা-কর্মীকে আসামি বানিয়েছে। শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে তারা লাঠি, বন্দুক এবং টিয়ার গ্যাস নিয়ে আক্রমণ শুরু করেছে।

‘দেশের সকল ছাত্র সমাজকে, তরুণ-যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। সমস্ত মানুষকে ঐক্যবদ্ধ করে একটা দুর্বার গণ-আন্দোলনের মধ্য দিয়ে সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করা হবে। এ সরকারের পতন ঘটাতে হবে, এদের সরাতে হবে। জনগণের বিজয় হবেই।’

সরকারের উদ্দেশে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘উল্টাপাল্টা কথা না বলে আপনারা পদত্যাগ করুন। সেইভ এক্সজিট নিন, একটা নিরপেক্ষ সরকারের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন, সংসদ বিলুপ্ত করুন।’

মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে এ সমাবেশ করা হয়।

এতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, আমান উল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, শামসুজ্জামান দুদু, রুহুল কবির রিজভী, ফজলুল হক মিলন, নাজিম উদ্দিন আলম, খায়রুল কবির খোকন, শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, কামরুজ্জামান রতনসহ কেন্দ্রীয় ও মহানগর নেতারা।

ছাত্রদলের সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণের সভাপতিত্বে সমাবেশ পরিচালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল।

আরও পড়ুন:
জনগণের আন্দোলন দমন করতেই সন্ত্রাস ছড়াচ্ছে আ.লীগ: ফখরুল
পাকিস্তান আমল কোন দিক দিয়ে ভালো: ফখরুলকে মোজাম্মেল
নতজানু পররাষ্ট্রনীতির কারণেই মিয়ানমারের হামলা: ফখরুল
পাকিস্তান আমলে আরও ভালো ছিলাম: ফখরুল
নির্বাচন কমিশনকেই মানি না, আবার ‘রোডম্যাপ’: ফখরুল

মন্তব্য

p
উপরে