× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Awami League leader killed in Jatrabari
hear-news
player
google_news print-icon

যাত্রাবাড়ীতে আওয়ামী লীগ নেতা খুন

যাত্রাবাড়ীতে-আওয়ামী-লীগ-নেতা-খুন
নিহতের ভাই মো. সুমন বলেন, ‘এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজ ফাহিম ও সাইফুলসহ কয়েকজন এই হামলা চালিয়েছে। আমার ভাই যাত্রাবাড়ীর ৫০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ১৪ নম্বর ইউনিটের সভাপতি ছিলেন। ফুটপাতে চাঁদাবাজিতে বাধা দেয়ায় ওরা আমার ভাইকে হত্যা করেছে।’

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে আওয়ামী লীগ নেতা নিহত হয়েছেন। নিহত মোহাম্মদ আবু বক্কর সিদ্দিক ৫০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ১৪ নম্বর ইউনিটের সভাপতি ছিলেন। এ সময় রুবেল নামে আরেকজন আহত হয়েছেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে যাত্রাবাড়ীর শহীদ ফারুক সড়কে এই হামলার ঘটনা ঘটে।

নিহতের ভাই মো. সুমন বলেন, ‘আমার ভাই যাত্রাবাড়ীর ৫০ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ১৪ নম্বর ইউনিটের সভাপতি। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শহীদ ফারুক সড়কে বনফুল মিষ্টির দোকানের সামনে ভাই দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় ৫/৭ জন দুর্বৃত্ত তাকে ঘিরে ফেলে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পেটসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো ছুরির আঘাতে তিনি রাস্তায় লুটিয়ে পড়েন। রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক রাত সাড়ে ৮টায় তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

মো. সুমন বলেন, ‘এলাকার চিহ্নিত চাঁদাবাজ ফাহিম ও সাইফুলসহ কয়েকজন এই হামলা চালিয়েছে। ফুটপাতে চাঁদাবাজিতে বাধা দেয়ায় ওরা আমার ভাইকে হত্যা করেছে।’

আবু বক্কর সিদ্দিক রাজনীতির পাশাপাশি কাঁচামালের ব্যবসা করতেন। তিনি দক্ষিণ যাত্রাবাড়ীর টানপাড়া এলাকায় সপরিবারে বসবাস করতেন। তিনি তিন মেয়ের জনক। স্ত্রীর নাম সাবিনা আক্তার। তার গ্রামের বাড়ি শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলায়। বাবার নাম আলী আহাম্মদ। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া জানান, যাত্রাবাড়ী থেকে ছুরিকাঘাতে আহত অবস্থায় স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক নেতাকে ঢাকা মেডিক্যালের জরুরি বিভাগে আনার পর চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় রুবেল নামে আরেকজন আহত হয়েছেন। তার মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের জখম রয়েছে। মরদেহ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি যাত্রাবাড়ী থানাকে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
জামিন পেয়েই খুন হলেন যুবক
‘প্রতিপক্ষের পিটুনিতে’ একজন খুন, ৮ বাড়ি ভাঙচুর
‘বন্ধুর ছুরিকাঘাতে’ তরুণ খুন
বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদকারীদের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি কেন নয়: হাইকোর্ট
এবার অস্ত্র ও মাদক মামলায় নূর হোসেনের বিচার শুরু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
BNP went to court for Shaons murder

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি মুন্সীগঞ্জের সংঘর্ষে নিহত যুবদলকর্মী শহীদুল ইসলাম শাওন। ছবি: সংগৃহীত
বাদী সালাহ্ উদ্দিন খান বলেন, ‘বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে আমি মামলার বাদী হয়েছি। নিহতের পরিবারের সদস্যরা ভয় পেয়ে মামলা করেননি, তারা পরে এ মামলার সঙ্গে যুক্ত হবেন।’

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় যুবদল কর্মী শহীদুল ইসলাম শাওনের মৃত্যুর ঘটনায় বিচার চেয়ে মুন্সীগঞ্জের আদালতে আবেদন জমা দিয়েছে বিএনপি। পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করে হত্যা মামলা নিতে এ আবেদন করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ আমলী আদালত-১ এর বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোসাম্মৎ রহিমা আক্তার এ বিষয়ে শুনানি ও আদেশের জন্য ১০ অক্টোবর দিন ঠিক করেছেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে এ মামলা বলে দাবি করেছেন বাদী মো. সালাহ্ উদ্দিন খান।

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি
মুন্সীগঞ্জের আমলী আদালতে আবেদন জমা দিয়েছে বিএনপি। ছবি: নিউজবাংলা

গত ২১ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর পুরাতন ফেরীঘাট এলাকায় পুলিশ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়। এতে সাংবাদিক ও পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন। পরদিন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান যুবদল কর্মী শহীদুল ইসলাম শাওন। তিনি পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন বলে দাবি করে আসছেন স্বজন ও বিএনপি নেতারা। অন্যদিকে পুলিশের দাবি, শাওনের মৃত্যু হয়েছে ইটের আঘাতে।

সংঘর্ষের এ ঘটনায় সদর থানার এসআই মাঈনউদ্দিন ও শ্রমিকলীগ নেতা আব্দুল মালেক বাদী হয়ে দুটি মামলা করেন। এতে বিএনপির দেড় সহস্রাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়।

শাওনের মৃত্যুর ঘটনায় এবার পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করে বৃহস্পতিবার আদালতে অভিযোগ জমা দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মামলা ও তথ্য সংরক্ষন কর্মকর্তা মো. সালাহ্ উদ্দিন খান। তিনি কেন্দ্রীয় কৃষক দলের নির্বাহী সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

মুন্সীগঞ্জ আমলী আদালতে দেয়া অভিযোগে আসামি করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মিনহাজ-উ-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অর্থ) সুমন দেব, সদর থানার ওসি তারিকুজ্জামানসহ পুলিশের ৯ সদস্যকে। এছাড়াও ৪০-৫০ জন পুলিশ সদস্য ও সরকার দলীয় ২০০-৩০০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে শাওন হত্যায়।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান খান আল-মামুন বলেন, ‘২১ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীদের সমাবেশ চলছিল। শান্তিপূর্ণ সমাবেশে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিনহাজ-উল-ইসলাম ঢুকে খালেদা জিয়া ও জিয়াউর রহমানের ছবি সম্বলিত ব্যানার কেড়ে নেন। তিনি পা দিয়ে ব্যানার মাড়ান এবং পুলিশ নেতাকর্মীদের উপর হামলা করে। তখন শাওনের কপালের ডান দিকে গুলি করা হয়।’

বাদী সালাহ্ উদ্দিন খান বলেন, ‘বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে আমি মামলার বাদী হয়েছি। নিহতের পরিবারের সদস্যরা ভয় পেয়ে মামলা করেননি, তারা পরে এ মামলার সঙ্গে যুক্ত হবেন।’

আরও পড়ুন:
কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড
বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  
৯৬-এর আলোকে তত্ত্বাবধায়কের রূপরেখা করছে বিএনপি
কেবল বিদ্যুৎ নয়, সব কিছুতেই জাতি বিপর্যয়ে: ফখরুল
খুলনায় বিএনপির গণসমাবেশ ২২ অক্টোবর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
DB raid on kingfisher bar in Uttara

উত্তরায় কিংফিশার বারে ডিবির অভিযান

উত্তরায় কিংফিশার বারে ডিবির অভিযান উত্তরায় কিংফিশার বারে বৃহস্পতিবার রাতে অভিযান চালায় ডিবি। ছবি: নিউজবাংলা
ডিবি উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার আকরামুল হোসেন বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা বারটিতে অভিযান পরিচালনা করছি। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।’

রাজধানীর উত্তরায় কিংফিশার নামে একটি বারে অভিযান চালিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

বৃহস্পতিবার রাত ১০টা থেকে উত্তরা-১৩ নম্বর সেক্টরে বারটিতে অভিযান শুরু করে ঢাকা মহানগর ডিবি উত্তরা বিভাগের একটি টিম।

ডিবি উত্তরা বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) আকরামুল হোসেন বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা বারটিতে অভিযান পরিচালনা করছি। অভিযান শেষে বিস্তারিত জানানো হবে।’

রাত সোয়া ১২টাও অভিযান চলছিল।

ডিবি জানায়, বারে থাকা বিদেশি এসব মদ আমদানির কাগজপত্র দেখাতে পারেনি কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন:
নাসার চাঁদে অভিযান ফের স্থগিত
দুই ডিলারের গুদামে মিলল ৭ হাজার বস্তা সার
হর্নবিরোধী অভিযানে দুই নীতি নিয়ে তোপের মুখে ম্যাজিস্ট্রেট
অভিযান-১০ লঞ্চ বুঝে পেলেন মালিক
তরকারিতে তেলাপোকাকাণ্ড

মন্তব্য

বাংলাদেশ
SI in jail in Domar rape case

ডোমারে ধর্ষণ মামলায় এসআই কারাগারে

ডোমারে ধর্ষণ মামলায় এসআই কারাগারে এসআই মহাবীর ব্যানার্জী। ছবি: সংগৃহীত
নীলফামারীর ডোমার থানার থানার ওসি মাহমুদ উন নবী জানান, মামলার আসামি মহাবীর ব্যানার্জীকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। আর ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়েছে।

নীলফামারীতে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। উপজেলা শহরের এক বাসিন্দা বৃহস্পতিবার বিকেলে ডোমার থানায় মামলাটি করেন।

মামলার আসামি ডোমার থানার সাবেক এসআই মহাবীর ব্যানার্জীকে সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করে পুলিশ। তিনি দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার কেউটপাড়ার কালী মোহন ব্যানার্জীর ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, স্বামী-স্ত্রী বনিবনা না হওয়ায় এক বছর আগে স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন (জিডি) ওই নারী। ওই অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব পান সে সময়ে ডোমার থানায় থাকা এসআই মহাবীর। তদন্তের সুবাদে ওই নারীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন তিনি।

ছয় মাস আগে ডোমার থানা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা র‌্যাবে বদলি হন মহাবীর ব্যানার্জী। তবে বদলির পরও মোবাইল ফোনে যোগাযোগ অব্যাহত ছিলো তাদের। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৫ অক্টোবর বুধবার রাতে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে ওই নারীকে ধর্ষণ করেন মহাবীর। বিষয়টি বুঝতে পেরে স্থানীয়রা তাকে আটক করেন।

ধর্ষণের শিকার ওই নারী জানান, এর আগে ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন মহাবীর ব্যানার্জী। বুধবার রাতের ওই ঘটনার পর স্থানীয় জনপ্রতিনিধির উপস্থিতিতে সালিস মিমাংসার উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু মহাবীর ওই নারীকে বিয়ে করতে রাজি হননি। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার এসআই মহাবীরকে আসামি করে থানায় মামলা করতে হয়েছে।

ডোমার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদ বলেন, ‘পৌরসভার কাউন্সিলরের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। দুজনের কথাবার্তায় মনে হয়েছে তাদের মধ্যে একটা সম্পর্ক ছিল। গতকাল (বুধবার) রাতে পুলিশ কর্মকর্তাকে ওই নারীর নিকটাত্মীয়রা আটক করেন। কিন্তু এসআই মহাবীরের কোনো অভিভাবক না আসায় তাদের পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহমুদ উন নবী জানান, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আসামি মহাবীরকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। আর ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়েছে।

কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মোমিনুল ইসলাম মোমিন বলেন, ‘এসআই মহাবীর ব্যানার্জীকে সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কক্ষে আটকে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ, নির্যাতন আরেক শিশুকে
দেশে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার ৭১ কন্যাশিশু
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
‘ধর্ষণের পর ১০ তলা থেকে ফেলে হত্যা’, মরদেহ উত্তোলন
দিয়াবাড়ির কাশবনে তরুণীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Threatening to take off clothes of women who come to deposit money

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি ডাকঘরের রানার হিসেবে কর্মরত সুমন আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযোগ স্বীকার করে নিয়ে সুমন আহমেদ বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।…উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

গাজীপুর পোস্ট অফিসে ডাক জীবন বিমার টাকা জমা দিতে গিয়ে আউটসোর্সিং কর্মীর মাধ্যমে লাঞ্ছিত হয়েছেন এক নারী। এ সময় ওই নারীর কাপড় খুলে নেয়ারও হুমকি দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের প্রধান ডাকঘরে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত সুমন আহমেদ প্রায় আড়াই বছর ধরে ডাকঘরের আউটসোর্সিং কর্মী (রানার) হিসেবে কর্মরত। সেই নারীর অভিযোগের পর তিনি তা স্বীকারও করেছেন। বলেছেন, উত্তেজিত হয়ে এই কথা বলে ফেলেছেন।

শহরের বাসিন্দা মধ্য বয়সী এক নারী বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডাক জীবন বিমার কিস্তির টাকা জমা দিতে শহরের রাজবাড়ি সড়কের প্রধান ডাকঘরে যান। সেখানে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও টাকা জমা দিতে না পেরে পোস্টাল অপারেটর আয়েশা বেগমের দ্বারস্থ হন।

আয়েশা ওই নারীকে আউট সোর্সিং কর্মী (রানার) সুমন আহমেদের কাছে পাঠান। কিন্তু সুমনও তাকে দীর্ঘক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখেন।

পরে ওই নারী তার কাজটি দ্রুত করে দেয়ার অনুরোধ করলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন সুমন। এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে তর্ক বাঁধে। এক পর্যায়ে সুমন কিস্তি জমা দিতে আসা ওই নারীকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে পরনের কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি এবং মারার জন্য তেড়ে যান।

ওই নারীকে সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবরুদ্ধও করে রাখা হয়। প্রায় এক ঘণ্টা এমন অবস্থা চলাকালে বিভিন্ন সেবা নিতে ডাকঘরে আসা লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

একাধিক সেবা প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, এ ডাকঘরে সেবা পেতে দুর্ব্যবহারসহ মানুষকে নানা হয়রানি পোহাতে হয়।

সুমন বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সহকারী পোস্ট মাস্টার ইব্রাহিম খলিল বলেন, ‘আউটসোর্সিং কর্মী সুমন স্টাফদের সঙ্গেও খারাপ আচরণ করে। আমাদের ক্ষমতা নেই তাকে বাদ দেয়ার, তাকে ওপর মহল থেকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

পোস্ট মাস্টার খন্দকার নূর কুতুবুল আলম জানান, ঘটনার সময় তিনি ব্যাংকে ছিলেন। পরে সব জেনে বলেন, ‘নারীর সঙ্গে করা আচরণ শোভন হয়নি। তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে ঘটনাটি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানানো হবে।’

তিনি জানান, সুমন আহমেদের নিয়োগ রানার পদে। জনবল সংকটের কারণে তাকে দিয়ে কিছু অফিসিয়াল কাজ করানো হয়।

আরও পড়ুন:
গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ
সবচেয়ে দূষিত বায়ু গাজীপুরে, কম মাদারীপুরে
অপহরণের ৯ ঘণ্টা পর শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Abduction of child to marry mother

মাকে বিয়ে করতে সন্তান অপহরণ

মাকে বিয়ে করতে সন্তান অপহরণ র‍্যাব হেফাজতে শফিকুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত
বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আছমাকে শায়েস্তা করতে ফন্দি আটেন শফিকুল। গত ২ অক্টোবর আছমা পোশাক কারখানায় গেলে সুযোগ বুঝে আরাফাতকে অপহরণ করা হয়। এরপর দেয়া হয় শফিকুলকে বিয়ে করার শর্ত।

গার্মেন্টস কর্মী আছমা খাতুনের বসবাস আশুলিয়ার জামগড়ার মিয়া বাড়ি এলাকায়। স্বামীহারা সংসারে ৭ বছর বয়সী ছেলে আরাফাতকে নিয়ে তার কাটছিল সময়। গত ২ অক্টোবর শিশু আরাফাত অপহরণের শিকার হয়। আর তার ‘মুক্তিপন হিসেবে’ প্রতিবেশি শফিকুল ইসলামকে বিয়ে করার শর্ত দেয়া হয় আছমাকে।

নিখোঁজের চারদিন পর কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ি গোলক মন্ডল এলাকা থেকে র‍্যাব উদ্ধার করেছে শিশু আরাফাতকে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে অপহরণকারী শফিকুল ইসলামকে।

বৃহস্পতিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে র‍্যাব জানায়, স্বামীহারা আছমা খাতুন জামগড়া এলাকার একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক। শিশু আরাফাতকে নিয়ে তিনি ভাড়া বাসায় থাকেন। প্রতিবেশি শফিকুল ইসলামের সঙ্গে আছমার প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হলেও বিয়ে নিয়ে জটিলতা বাধে। শফিকুলের গ্রামের বাড়িতে আরেক স্ত্রী থাকার কথা জেনে যান আছমা।

বিয়েতে রাজি না হওয়ায় আছমাকে শায়েস্তা করতে ফন্দি আটেন শফিকুল। গত ২ অক্টোবর আছমা পোশাক কারখানায় গেলে সুযোগ বুঝে আরাফাতকে অপহরণ করেন শফিকুল। এরপর মোবাইল ফোনে প্রথম পর্যায়ে ১ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়। পরে দেয়া হয় শফিকুলকে বিয়ে করার শর্ত।

আরাফাত অপহরণের পরদিন তার মা আছমা খাতুন আশুলিয়া থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

শিশু অপহরণের অভিযোগ পেয়ে র‌্যাব-৪ ছায়াতদন্ত শুরু করে। প্রযুক্তির সহায়তায় র‍্যাব নিশ্চিত হয় কুড়িগ্রাম জেলায় শফিকুলের বাড়িতে রাখা হয়েছে অপহৃত শিশু আরাফাতকে। পরে অভিযান চালিয়ে শফিকুলকে গ্রেপ্তারের পাশাপাশি অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় শিশুকে।

র‌্যাব-৪ সিপিসি-২ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অপহৃত শিশুকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। এঘটনায় আটক শফিকুলকে আশুলিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
নাফিজা অপহরণ মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে তলব
এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ‘অপহরণ’, প্রধান শিক্ষক পলাতক
দাখিল পরীক্ষার্থীদের ‘অপহরণচেষ্টা’, গ্রেপ্তার ৫

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Killing her husband with her lover

প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে স্বামীকে জবাই

প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে স্বামীকে জবাই পুলিশ হেফাজতে আসামি আতিউর রহমান আতাই। ছবি: নিউজবাংলা
‘সাব্বিরের দ্বিতীয় স্ত্রী রজনীর সঙ্গে আতাইয়ের বিয়েবর্হিভূত সম্পর্ক ছিল। তা সাব্বির জেনে গেলে পারিবারিক ঝামেলা হয়। তখনই হত্যার পরিকল্পনা করেন রজনী-আতাই। ৩ অক্টোবর ভোরে তারা আড়ুয়াপাড়া ছোট ওয়ারলেস গেট সংলগ্ন বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় সাব্বিরকে গলা কেটে হত্যা করে।’

কুষ্টিয়ায় মেজবা উদ্দিন সাব্বির হত্যায় দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। স্ত্রীর বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের জেরেই সাব্বির দুদিন আগে খুনের শিকার হন বলে পুলিশের দাবি।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে কুষ্টিয়া পুলিশ লাইন্স সভাকক্ষে সাব্বির হত্যার বিষয়ে ব্রিফিং করেন পুলিশ সুপার খাইরুল আলম।

তিনি বলেন, ‘প্রেমিককে সঙ্গে নিয়ে সাব্বিরকে জবাই করেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী রজনী খাতুন। গ্রেপ্তারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এ হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন রজনী। গ্রেপ্তার করা হয়েছে তার প্রেমিক আতিউর রহমান আতাইকে। তাদের দেয়া তথ্যে মিরপুর উপজেলার বারইপাড়া ইউনিয়নের কবরবারিয়া এলাকার একটি বাঁশঝাড় থেকে উদ্ধার হয়েছে হত্যায় ব্যবহার করা ছুরি।

‘সাব্বিরের দ্বিতীয় স্ত্রী রজনীর সঙ্গে আতাইয়ের বিয়েবর্হিভূত সম্পর্ক ছিল। তা সাব্বির জেনে গেলে পারিবারিক ঝামেলা হয়। তখনই হত্যার পরিকল্পনা করেন রজনী-আতাই। ৩ অক্টোবর ভোরে তারা আড়ুয়াপাড়া ছোট ওয়ারলেস গেট সংলগ্ন বাড়িতে ঘুমন্ত অবস্থায় সাব্বিরকে গলা কেটে হত্যা করে।’

পুলিশ জানায়, গ্রেপ্তার করা আসামি ৩০ বছর বয়সী আতিউর রহমান ওরফে আতাইয়ের বাড়ি কুষ্টিয়ার বাড়াদী উত্তরপাড়ায়। তার পিতা মৃত হানু মালিথা। বুধবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে বারখাদা মীরপাড়া এলাকা থেকে আতাইকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার রজনী খাতুনের বাড়ি কুষ্টিয়ার লাহিনী বটতলায়। তার পিতার নাম শামসুল হক। ২৫ বছর বয়সী রজনী নিহত সাব্বিরের দ্বিতীয় স্ত্রী।

সাব্বির হত্যার পরদিন তার বোন রাবেয়া খাতুন বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি মামলা করেন।

তদন্তে নেমে দুদিনের মধ্যে পুলিশ হত্যা রহস্য উদঘাটনের পাশাপাশি দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে।

আরও পড়ুন:
‘বিয়েবহির্ভূত’ সম্পর্ক: স্ত্রীকে কুপিয়ে জখম
স্বামীকে হত্যার দায়ে নারীসহ দুজনের মৃত্যুদণ্ড
‘বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক’: গৃহবধূকে জবাই করে হত্যা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
11 Chhatra League injured in attack in Gazipur protest blockade

গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ

গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার গাজীপুর শহরে বিক্ষোভ সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। ছবি: নিউজবাংলা
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ছাত্রলীগের সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গুলি ছোড়ার কথা শুনেছি, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি।’

গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগ নেতাদের ওপর হামলা ও গুলির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার রাতে শহরের রথখোলার ঢালে এ ঘটনায় মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পদক শেখ মোস্তাক আহমেদ কাজলসহ ১১ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে কাজলসহ ৭ জনকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে বৃহস্পতিবার শহরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে মহানগর ছাত্রলীগ। পরে নেতা-কর্মীরা শহরের শিববাড়ি মোড় প্রায় ৩০ মিনিট অবরোধ করে রাখে। এ সময় হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি মোশিউর রহমান সরকার বাবু।

আহত কাজল বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজায় প্রতিমা বিসর্জনের অনুষ্ঠান শেষে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মো. ওয়াজউদ্দীনকে রথখোলা এলাকায় আমরা বিদায় জানাচ্ছিলাম। অ্যাডভোকেট ওয়াজউদ্দীন চলে যাওয়ার পর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) মাসুদ রানা এরশাদের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জনের একটি দল আমাদের ওপর হামলা চালায়।

‘এ সময় আমাকে লক্ষ্য করে ৩ রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়। তা লক্ষভ্রষ্ট হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যাই। এক পর্যায়ে চাপাতি দিয়ে কোপ দিলে আমার থুতনি কেটে যায়। আমাকে রক্ষা করতে এগিয়ে এলে হামলাকারীদের চাপাতি ও হকিস্টিকের আঘাতে ছাত্রলীগ নেতা আনিছুর রহমান বাদল, মিরাজুর রহমান রায়হান, ইলিয়াস রুমন ও রনিসহ ১১ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী আহত হয়। আমিসহ সাতজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছি।’

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে মাসুদ রানা এরশাদ বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি ছিলাম না। মোস্তাক আহমেদ কাজল ও কাজী আশরাফ রাকিব মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ছিলেন। কাজল পদ পেলেও রাকিব পদ পাননি। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। কাজলের অনুসারীরা রাকিবের ওপর হামলা চালিয়েছে।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গুলি ছোড়ার কথা শুনেছি, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তবে এ ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি।’

আরও পড়ুন:
ক্যাম্পাসে অস্ত্র হাতে ঘুরছে ছাত্রলীগের ২ গ্রুপ
ফরিদপুরে চাঁদাবাজির অভিযোগে ছাত্রলীগের ৩ জন গ্রেপ্তার
রিভাও তো মানুষ, ভুল করতেই পারে: তিলোত্তমা
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে ৭৬ ছাত্রীকে বাইসাইকেল দিল ছাত্রলীগ
বিয়ে, পিতৃত্ব শেষে এবার তারা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদক

মন্তব্য

p
উপরে