× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
MP minister and Awami League workers are in heaven GM Quader
hear-news
player
google_news print-icon

বেহেশতে আছে এমপি-মন্ত্রী আর আওয়ামী লীগ কর্মীরা: জিএম কাদের

বেহেশতে-আছে-এমপি-মন্ত্রী-আর-আওয়ামী-লীগ-কর্মীরা-জিএম-কাদের
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের হাতে ফুল দিয়ে দলটিতে যোগ দেন এলডিপির নেতাকর্মীরা। ছবি: সংগৃহীত
জিএম কাদের বলেন, ‘দেশের এমপি-মন্ত্রী আর আওয়ামী লীগ কর্মীরাই বেহেশতে আছেন। কারণ, সরকার সমর্থকরা সীমাহীন দুর্নীতির মাধ্যমে টাকার পাহাড় কামিয়েছে। তাদের কোনো অভাব নেই। প্রতি বছর তারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে। নিজেদের দলের লোকদের বাঁচাতেই দুর্নীতিবাজ ও পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারছে না সরকার।’

দেশের সাধারণ মানুষ নয়, এমপি-মন্ত্রী আর আওয়ামী লীগ কর্মীরাই বেহেশতে আছেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান জি এম কাদের।

বনানীতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এলডিপির কয়েকজন নেতার জাতীয় পার্টিতে যোগদান অনুষ্ঠানে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

গতকাল শুক্রবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বিশ্বের অনেক দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেশতে আছে বলে মন্তব্য করেন। তার মন্তব্যে সারা দেশে ওঠে সমালোচনার ঝড়।

এক দিন পর অবশ্য দেশের মানুষের বেহেশতে থাকার বিষয়টি ব্যাখ্যা করেছেন মোমেন। তিনি বলেছেন, বর্তমান বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে অন্য দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের তুলনা করে তিনি এমন মন্তব্য করেছিলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সেই মন্তব্য ঘিরে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের এমপি-মন্ত্রী ও নেতাকর্মীদের বিষয়ে এমন মন্তব্য করেছেন।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, ‘দেশের এমপি-মন্ত্রী আর আওয়ামী লীগ কর্মীরাই বেহেশতে আছেন। কারণ, সরকার সমর্থকরা সীমাহীন দুর্নীতির মাধ্যমে টাকার পাহাড় কামিয়েছে। তাদের কোনো অভাব নেই। প্রতি বছর তারা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে।

‘নিজেদের দলের লোকদের বাঁচাতেই দুর্নীতিবাজ ও পাচারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে পারছে না সরকার।’

তিনি বলেন, ‘অন্যদিকে অর্থনৈতিক সংকটে দেশের মানুষের হিমশিম অবস্থা। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে সীমাহীন কষ্টে আছে সবাই। দুর্নীতিবাজ আর লুটেরা কখনই সাধারণ মানুষের কষ্ট বোঝে না। দুর্বিষহ অবস্থা থেকে মুক্তি চায় দেশের মানুষ। জাতীয় পার্টি মানুষকে মুক্তি দিতেই রাজনীতি করছে।’

অনুষ্ঠানে এলডিপির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি প্রফেসর ড. মো. আবু জাফর সিদ্দিকী জি এম কাদেরের হাতে ফুল দিয়ে জাতীয় পার্টিতে যোগদান করেন।

এ সময় এলডিপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এইচ এম বদরুদ্দোজা, ইমদাদুল ইসলাম সোহান, আব্দুল হাই নোমান, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, ফেরদৌস ফাহিমসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায়, ৫ এমওইউ সইয়ের সম্ভাবনা
নমপেনে মোমেনের সঙ্গে বিলাওয়ালের সৌজন্য সাক্ষাৎ
ডি-৮ দেশগুলোকে একসঙ্গে কাজ করতে ঢাকার আহ্বান
পদ্মা সেতু আত্মবিশ্বাস ও সক্ষমতা গড়ার সেতু: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
গ্রিসে বৈধতা পাচ্ছেন ১৫ হাজার বাংলাদেশি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
BNP meeting in Kondale

কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড

কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড নালিতাবাড়ীতে অন্তকোন্দলে বিএনপির পরিচিতি সভা পণ্ড করে দিয়েছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
নালিতাবাড়ী থানার ওসি এমদাদুল হক বলেন, ‘বিএনপির দুই গ্রুপ একই স্থানে সভা ডাকায় গন্ডগোলের শঙ্কা দেখা দেয়। একারণে সেখানে সভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া মধুটিলা ইকোপার্ক বিনোদনের স্থান, সেখানে সভা-সমাবেশ করা ঠিক না।’

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে অন্তকোন্দলে সংঘর্ষের শঙ্কায় বিএনপির সভা পণ্ড করে দিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার মধুটিলা ইকোপার্কে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি পরিচিতি সভা ডাকে। একই স্থানে শ্রমিকদল সভা আহ্বান করায় সংঘর্ষের শঙ্কায় সব কর্মসূচি বন্ধ করা হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই কমিটির পরিচিতি সভা করার জন্য ইউনিয়ন বিএনপি চিঠি বিতরণ করে।

চিঠিতে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন শ্রমিকদলের নেতাদের নাম না থাকায় ক্ষুব্ধ হয়ে তারাও শ্রমিকদলের কমিটি পুনর্গঠনের জন্য একই স্থানে সভা ডেকে চিঠি দেয়।

বিকেলে উপজেলা বিএনপির নেতারা সভাস্থলে উপস্থিত হন। এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের শঙ্কায় পুলিশ গিয়ে সভা পণ্ড করে দেয়।

এ বিষয়ে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল মুন্সি বলেন, ‘আমরা ইউনিয়ন শ্রমিকদলের কমিটি পুনর্গঠনের জন্য মূলদলের আগেই ৩ অক্টোবর চিঠি বিলি করে সভা আহ্বান করি। আর মূলদলের চিঠিতে সভার তারিখ ছিল না।’

পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মজিবর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘দলীয় একটু সমস্যার কারণে পরিচিতি সভা স্থগিত করা হয়েছে।’

নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক বলেন, ‘বিএনপির দুই গ্রুপ একই স্থানে সভা ডাকায় গন্ডগোলের শঙ্কা দেখা দেয়। একারণে সেখানে সভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া মধুটিলা ইকোপার্ক বিনোদনের স্থান, সেখানে সভা-সমাবেশ করা ঠিক না।’

আরও পড়ুন:
৯৬-এর আলোকে তত্ত্বাবধায়কের রূপরেখা করছে বিএনপি
কেবল বিদ্যুৎ নয়, সব কিছুতেই জাতি বিপর্যয়ে: ফখরুল
খুলনায় বিএনপির গণসমাবেশ ২২ অক্টোবর
দেবী দুর্গার আবির্ভাব সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায়: ফখরুল
সরকার পতন আন্দোলনে বিএনপির নেতৃত্ব চান অলি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
11 Chhatra League injured in attack in Gazipur protest blockade

গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ

গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার গাজীপুর শহরে বিক্ষোভ সমাবেশ করে ছাত্রলীগ। ছবি: নিউজবাংলা
গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ছাত্রলীগের সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গুলি ছোড়ার কথা শুনেছি, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি।’

গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগ নেতাদের ওপর হামলা ও গুলির ঘটনা ঘটেছে। বুধবার রাতে শহরের রথখোলার ঢালে এ ঘটনায় মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পদক শেখ মোস্তাক আহমেদ কাজলসহ ১১ নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে কাজলসহ ৭ জনকে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে বৃহস্পতিবার শহরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে মহানগর ছাত্রলীগ। পরে নেতা-কর্মীরা শহরের শিববাড়ি মোড় প্রায় ৩০ মিনিট অবরোধ করে রাখে। এ সময় হামলায় জড়িতদের গ্রেপ্তারে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন মহানগর ছাত্রলীগ সভাপতি মোশিউর রহমান সরকার বাবু।

আহত কাজল বলেন, ‘হিন্দু সম্প্রদায়ের দুর্গাপূজায় প্রতিমা বিসর্জনের অনুষ্ঠান শেষে মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট মো. ওয়াজউদ্দীনকে রথখোলা এলাকায় আমরা বিদায় জানাচ্ছিলাম। অ্যাডভোকেট ওয়াজউদ্দীন চলে যাওয়ার পর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) মাসুদ রানা এরশাদের নেতৃত্বে ২৫-৩০ জনের একটি দল আমাদের ওপর হামলা চালায়।

‘এ সময় আমাকে লক্ষ্য করে ৩ রাউন্ড গুলি ছোড়া হয়। তা লক্ষভ্রষ্ট হওয়ায় প্রাণে বেঁচে যাই। এক পর্যায়ে চাপাতি দিয়ে কোপ দিলে আমার থুতনি কেটে যায়। আমাকে রক্ষা করতে এগিয়ে এলে হামলাকারীদের চাপাতি ও হকিস্টিকের আঘাতে ছাত্রলীগ নেতা আনিছুর রহমান বাদল, মিরাজুর রহমান রায়হান, ইলিয়াস রুমন ও রনিসহ ১১ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী আহত হয়। আমিসহ সাতজন হাসপাতালে ভর্তি রয়েছি।’

তবে হামলার অভিযোগ অস্বীকার করে মাসুদ রানা এরশাদ বলেন, ‘ঘটনার সময় আমি ছিলাম না। মোস্তাক আহমেদ কাজল ও কাজী আশরাফ রাকিব মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ছিলেন। কাজল পদ পেলেও রাকিব পদ পাননি। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলে আসছে। কাজলের অনুসারীরা রাকিবের ওপর হামলা চালিয়েছে।’

গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (জিএমপি) সদর থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘সিনিয়র-জুনিয়র দ্বন্দ্বে হামলার ঘটনা ঘটেছে। গুলি ছোড়ার কথা শুনেছি, বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। তবে এ ঘটনায় কোনো পক্ষ থানায় অভিযোগ করেনি।’

আরও পড়ুন:
ক্যাম্পাসে অস্ত্র হাতে ঘুরছে ছাত্রলীগের ২ গ্রুপ
ফরিদপুরে চাঁদাবাজির অভিযোগে ছাত্রলীগের ৩ জন গ্রেপ্তার
রিভাও তো মানুষ, ভুল করতেই পারে: তিলোত্তমা
শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে ৭৬ ছাত্রীকে বাইসাইকেল দিল ছাত্রলীগ
বিয়ে, পিতৃত্ব শেষে এবার তারা ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
President and Prime Minister are going to Tungipara on Friday

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন শুক্রবার

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন শুক্রবার রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত
গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর টুঙ্গিপাড়া সফর ঘিরে জেলাজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যাবতীয় প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধি সৌধে শ্রদ্ধা জানাতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবার টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন।

টুঙ্গিপাড়ায় বিকেলে রাষ্ট্রপতিকে স্বাগত জানাবেন প্রধানমন্ত্রী।

গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর টুঙ্গিপাড়া সফর ঘিরে জেলাজুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। যাবতীয় প্রস্তুতি এরই মধ্যে শেষ হয়েছে।

টুঙ্গিপাড়ার মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে গণভবন থেকে সড়ক পথে টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে রওনা হবেন। টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছে তিনি জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহাপাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করবেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার ছোট বোন শেখ রেহানারও আসার কথা রয়েছে।’

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বিকেলে সড়কপথে পদ্মা সেতু পাড়ি দিয়ে টুঙ্গিপাড়া যাবেন।

রাষ্ট্রপতির প্রেস সচিব মো. জয়নাল আবদীন বাসসকে জানান, রাষ্ট্রপতির সঙ্গে থাকবেন পারিবারিক সদস্য ও রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের কর্মকর্তারা।

বঙ্গভবন থেকে মোটর শোভাযাত্রাসহ টুঙ্গিপাড়ার উদ্দেশে বেলা পৌনে ২টায় রাষ্ট্রপতির যাত্রা করার কথা রয়েছে।

রাষ্ট্রপ্রধান জাতির পিতার সমাধি সৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাতে অংশ নেবেন। মোনাজাত শেষে তিনি পরিদর্শন বইয়ে সই করবেন।

পরে রাষ্ট্রপতি মোটর শোভাযাত্রাস টুঙ্গিপাড়া থেকে কালনা সেতু এলাকা পরিদর্শন করবেন। সেখান থেকে মাদারীপুরের শিবচরে ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরীর কবর জিয়ারত এবং ইলিয়াস আহমেদ চৌধুরী কলেজ ও মসজিদ পরিদর্শনে যাবেন।

আরও পড়ুন:
টুঙ্গিপাড়ায় দারুণ আয়োজনে কাটল লোকজ মেলার দিন
বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে সব চ্যানেলে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই’
বঙ্গবন্ধু সমাধি কমপ্লেক্সে দুই সপ্তাহ প্রবেশ নিষেধ
প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়া পরিদর্শনে সচিব
মন পড়ে আছে টুঙ্গিপাড়ায়: শেখ হাসিনা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
No invitation to tea nothing to do if you dont vote

‘ভোটে না এলে কিছু করার নেই’

‘ভোটে না এলে কিছু করার নেই’ সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস
প্রধানমন্ত্রী মাঝে বলেছিলেন, বিরোধী দল চাইলে গণভবনে চায়ের আমন্ত্রণে আসতে পারে। সেই প্রসঙ্গটি তুলে ধরে একজন গণমাধ্যমকর্মী জানতে চান, নির্বাচন সামনে রেখে বিরোধী দলগুলোকে এবার চায়ের আমন্ত্রণ জানানো হবে কি না। জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে একটু চিন্তা করতেই হবে। অনেকে আসবেও না, আসতেও পারবে না। এটা একটা সমস্যা।’

চলমান করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে আগামী জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধীদলগুলোর সঙ্গে সংলাপে বসার সুযোগ নেই বলেও ইঙ্গিত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এমনকি কয়েক মাস আগে বিরোধীদেরকে গণভবনে যে চায়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন, সেটিও আর নেই বলে ইঙ্গিত দিলেন তিনি।

নির্বাচনে অংশ নেয়া, না নেয়া প্রতিটি রাজনৈতিক দলের নিজস্ব সিদ্ধান্ত জানিয়ে তিনি বলেছেন, সেখানে কিছু চাপিয়ে দেয়া যায় না, কিছু করারও থাকে না। আর ‘খুঁটির জোর’ ও জনসমর্থন না থাকায় বিএনপি বিদেশিদের কাছে ধরনা দিচ্ছে বলেও মন্তব্য করেছেন সরকারপ্রধান।

গণভবনে বৃহস্পতিবার বিকেলে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বিদেশ সফর করলে বরাবর সাংবাদিকদেরকে ব্রিফ করেন। সেই ব্রিফিংয়ে সফরের বিষয়ে একটি সাধারণ বিবৃতি থাকে। এরপর থাকে প্রশ্নোত্তর পর্ব। এই পর্বে আর্থ-সামাজিক বা রাজনৈতিক সবশেষ পরিস্থিতির সম্পর্কে সরকার প্রধানের বক্তব্য উঠে আসে। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি।

অন্যান্য অনেক প্রশ্নের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীকে প্রশ্ন করা হয় আগামী জাতীয় নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির অবস্থান নিয়ে, যারা নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের অধীনে না হলে ভোটে না আসার ঘোষণা দিয়ে রেখেছে।

১৯৯৬ থেকে তিনটি জাতীয় নির্বাচন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হলেও গত দু্টি নির্বাচন হয়েছে আওয়ামী লীগ সরকার দায়িত্বে থাকাকালে।

২০০৯ উচ্চ আদালত তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থাকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করলে নির্বাচিত সরকারের অধীনে ভোটের পদ্ধতি ফিরিয়ে আনে জাতীয় সংসদ।

এর প্রতিবাদে ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন বর্জন করে আন্দোলনে যায় বিএনপি ও শরিকরা। তবে নির্বাচন ঠেকানো যায়নি। ২০১৮ সালের একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগেও আন্দোলনের ঘোষণা দিলেও বিএনপি ও তার জোট শেষ পর্যন্ত ভোটে আসে এবং ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে ফল করে।

সেই নির্বাচনে আগের রাতে ভোট হয়ে যাওয়ার অভিযোগ এনে বিএনপি নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবিতে ফিরে গেছে। এর অংশ হিসেবে গত ২২ আগস্ট থেকে ধারাবাহিক নানা কর্মসূচি পালন করছে।

চায়ের আমন্ত্রণ কি আছে?

প্রধানমন্ত্রী মাঝে বলেছিলেন, বিরোধী দল চাইলে গণভবনে চায়ের আমন্ত্রণে আসতে পারে। সেই প্রসঙ্গটি তুলে ধরে একজন গণমাধ্যমকর্মী জানতে চান, নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধী দলগুলোকে এবার ‘চায়ের আমন্ত্রণ’ দেয়া হবে কি না।

জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনার কারণে একটু চিন্তা করতেই হবে। অনেকে আসবেও না, আসতেও পারবে না। এটা একটা সমস্যা।’

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে সংলাপ করলেও তার অভিজ্ঞতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নাখোশ, তা বোঝা গেল তার কথায়।

তিনি বলেন, ‘গতবার যে সবার সঙ্গে বৈঠক করলাম, আলোচনা করলাম একটা নির্বাচন, নির্বাচনে এসে দেখা গেল ৩০০টিতে ৭০০ নমিনেশন দিয়ে যখন নিজেরা হেরে গেল, তখন সব দোষ কার, আমাদের।’

‘নির্বাচনে আসার সিদ্ধান্ত চাপিয়ে দিতে পারি না’

আগের কথার রেশ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দ্বিতীয় কথা হচ্ছে যে, আর নির্বাচন হলে রাজনৈতিক দলের সিদ্ধান্ত কে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে, কে করবে না। সেখানে আমরা কিছু চাপিয়ে দিতে পারি না। রাজনীতি করতে হলে দলগুলো নিজের সিদ্ধান্ত নেবে।’

তবে সব দল নির্বাচনে অংশ নেবে বলে- এটাই নিজের চাওয়া বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, আমরা অবশ্যই চাই যে সবদল অংশগ্রহণ করুক। কারণ এতদিন কাজ করার পর নিশ্চয়ই আমরা চাইব যে সবাই আসুক।’

দেশের জনগণের কাছে বিএনপির ভোট চাওয়ার মুখটাও নেই বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগ প্রধান। বলেন, ‘তারা আর কোন মুখে জনগণের কাছে ভোট চাইতে যাবে? আগুন দিয়ে পোড়ানো, মানুষ খুন করা, বোমা মারা, গ্রেনেড মারা-সব জায়গাতে তো আছে। তারা যদি সামনে এসে দাঁড়ায়, ভোট চাইতে আসছেন, আমার এই অবস্থা। কী জবাব দেবে বিএনপি? এজন্যই বিদেশিদের কাছে ধরনা দিয়ে বেড়ায়। দেশের মানুষের কাছে যায় না।’

আন্দোলনে বাধা নেই

গত জুলাই থেকে বিএনপির নানা কর্মসূচিতে পুলিশের গুলিতে পাঁচ জনের মৃত্যু ও অনেক নেতা-কর্মী আহত হলেও প্রধানমন্ত্রী দাবি করেন, বিএনপির আন্দোলনে সরকার কোনো বাধা দিচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘আমরা তো বাধা দিচ্ছি না। আমরা তো বলছি আন্দোলন করেন, সংগ্রাম করেন, যত আন্দোলন করবে তত ভালো। করে না তো, কী করব?’

ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পরবর্তী বছরই তো ইলেকশন। নির্বাচনের প্রস্তুতিও আমরা এখন থেকে নিচ্ছি। আমাদের দল বোধ হয় বাংলাদেশে একটি মাত্র দল আমরা আমাদের গঠনতন্ত্র মেনে চলি। প্রতিটি ক্ষেত্রে গঠনতন্ত্র মোতাবেক আমরা আমাদের সিদ্ধান্ত নিই।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘আমাকে নিয়ে লেখালেখির এত দরকার নেই। আমি জনগণের সেবা করতে এসেছি। আমার বাবা দেশটা স্বাধীন করে দিয়ে গেছেন, তার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করাই আমার লক্ষ্য। আমার নিজের তো চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। আমার দেশের মানুষের জন্য কতটুকু কী করতে পারলাম, কতটুকু দিতে পারলাম, এটাই হচ্ছে আমার সব থেকে বড় পাওয়া।’

‘ভোট চুরি করে আ.লীগ ক্ষমতায় আসেনি, আসবেও না’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অন্তত আওয়ামী লীগ কখনও ভোট চুরি করে ক্ষমতায় আসবেও না, আসেও নি। আওয়ামী লীগ কিন্তু জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়েই ক্ষমতায় এসেছে।’

জনগণের জন্য কাজ করে, জনগণের মন জয় করে, জনগণের ভোট নিয়েই আওয়ামী লীগ বারবার ক্ষমতায় এসেছে বলে জানান তিনি। বলেন, ‘আওয়ামী লীগ কখনও কোনো মিলিটারি ডিক্টেটরের পকেট থেকে বের হয়নি। ইমার্জেন্সি দিয়ে কারও ক্ষমতা দখল করেও কিন্তু আওয়ামী লীগ কখনও ক্ষমতায় আসেনি। আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসছে, ভোটের মাধ্যমেই এসেছে, নির্বাচনের মাধ্যমেই এসেছে।

‘এদেশে নির্বাচনের যতটুকু উন্নতি, যতটুকু সংস্কার এটা কিন্তু আওয়ামী লীগ ও সবাইকে নিয়ে মহাজোট করেই কিন্তু করে দিয়েছি। এরপর যদি কেউ না আসে, সেখানে আমাদের কী করণীয়? হারার ভয়ে আসব না, বা কিছু বা একেবারে লোকমা তুলে খাইয়ে দিতে হবে, তবেই আসব, এটা তো হয় না।’

‘সেনাশাসনে জন্ম হওয়া বিএনপি জনগণের কাছে যেতে ভয় পায়’

সামরিক শক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিএনপির জন্ম জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মিলিটারি ডিক্টেটররা এভাবে করেছে। যাদের এই অভ্যাস, তারা তো জনগণের কাছে যেতেই ভয় পায়। জনগণের সামনে ভোট চাইতেই ভয় পায়, এটা বাস্তবতা। অগ্নিসন্ত্রাস করে যারা মানুষ হত্যা করেছে, তাদেরকে কী মানুষ ভোট দেবে? কখনও দিতে পারে না। সে পোড়া ঘা তো এখনও শুকায়নি। এখনও তো কষ্ট পাচ্ছে, গ্রেনেড হামলায় যারা আহত।’

খুঁটির জোর আর জনসমর্থন নেই বলেই বিএনপি জনগণের কাছে না গিয়ে বিদেশিদের কাছে দৌড়ে বেড়াচ্ছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি ভুলে গেছে তাদের অতীতের কথা। বিএনপির সৃষ্টি যেভাবে, একটা মিলিটারি ডিক্টেটরের পকেট থেকে বিএনপির সৃষ্টি। আর নির্বাচনের যে প্রহসন, সেটাও তাদের সৃষ্টি, তারা তৈরি করেছে। বরং নির্বাচনটাকে আমরা জনগণের কাছে নিয়ে গেছি।’

বিভিন্ন দূতাবাসের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যদি মাটিতে জোর থাকত, নিজের দেশের মাটিতে যদি তাদের সে রকম সমর্থন থাকত, আর ওই যে বলে না খুঁটিতে যদি জোর থাকত, অর্থাৎ নিজের শেকড়ের জোরটা যদি এখানে থাকত তাহলে তো বিদেশে ধরনা দেয়ার দরকার হতো না।

‘জনসমর্থন থাকলে, জনগণের ওপর আস্থা থাকলে, বিশ্বাস থাকলে জনগণের কাছেই যেত। বিদেশের কাছে দৌড়ে বেড়াত না, এটাই হলো বাস্তবতা।’

আরও পড়ুন:
র‌্যাব তো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে, ট্রেনিংও তাদের: প্রধানমন্ত্রী
বিশ্বে দুর্ভিক্ষের শঙ্কা, দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী
বিদায় নেয়ার জন্য প্রস্তুত আমি: শেখ হাসিনা
সব ধর্মকে সম্মান দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Electoral code of conduct to be followed A league to EC

নির্বাচনি আচরণবিধি মেনে চলতে হবে: আ.লীগকে ইসি

নির্বাচনি আচরণবিধি মেনে চলতে হবে: আ.লীগকে ইসি গাইবান্ধা-৫ আসনে উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মাহমুদ হাসান রিপন গণসংযোগ করছেন। ছবি: নিউজবাংলা
‘জেলা পরিষদ নির্বাচনে কোথাও কোথাও নির্বাচনি আচরণ বিধি লঙ্ঘন হচ্ছে এবং এ সংক্রান্ত খবর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে মর্মে নির্বাচন কমিশনের নজরে এসেছে। আচরণবিধি লঙ্ঘন করে সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ কোথাও কোথাও নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন, রঙিন পোস্টার মুদ্রণ করে প্রচার করছে এবং পোস্টারে নেতা-নেত্রীর ছবিও ছাপানো হচ্ছে। এছাড়াও রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বিভিন্ন জনসভায় নির্বাচনি প্রচারণা চালানো হচ্ছে।’

৬১ জেলা পরিষদ ও গাইবান্ধা-৫ আসনে উপনির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে আচরণবিধি মেনে চলতে বলেছে নির্বাচন কমিশন। জানানো হয়েছে, যেসব অভিযোগ উঠেছে, সেগুলো তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির মহাসচিব মজিবুল হক চুন্নুর নেতৃত্বে একটি দল বৃহস্পতিবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়ালের সঙ্গে দেখা করে নানা অভিযোগ করার পর কমিশনের পক্ষ থেকে এ কথা জানানো হয়।

বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের নাম উল্লেখ না করে একটি বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়। পাশাপাশি নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন।

আওয়ামী লীগকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘যে প্রধান দলটির পরিচালনা করেন, তাদের কাছে বার্তা দেয়া হয়ে গেছে যে আপনাদের দলের কোনো সদস্য যাতে আচরণবিধি না ভাঙে, সে জন্য দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন।’

নির্বাচন কমিশন এই নির্দেশনা পাঠিয়েছে কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘জ্বি, জ্বি’।

ক্ষমতাসীন দলের সেক্রেটারি বরাবর পাঠানো হয়েছি কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘নামটা বললাম না। তবে অলরেডি দেয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে। কিছুক্ষণ পরে আপনারা টের পেয়ে যাবেন তারা সতর্ক হয়ে গেছে।’

আলমগীর বলেন, ‘সরকার তো দেশ চালায়। তবে আমরা যেটা বলব সেটা তো তারা সাংবিধানিকভাবে তারা মানতে বাধ্য। সরকারি দায়িত্ব হিসেবে এটা মানতে হবে।'

জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে দুই/চারটি জেলা থেকে অভিযোগ আসছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা কড়া নির্দেশ দিয়েছে যদি কেউ আচরণবিধি ভঙ্গ করে, তাদেরকে বলতে হবে আপনারা অতিসত্ত্বর এলাকা ত্যাগ করবেন। এলাকায় থাকতে পারবেন না। এই ভোটে তো তিনি ভোটার না। ভোটার হিসেবে এলাকায় থাকবার সুযোগ নাই।’

তিনি বলেন, ‘শুধু গাইবান্ধা না, যেকোনো ধরনের নির্বাচন থেকে আমরা এ ধরনের অভিযোগ পেয়ে থাকি যে, যারা নির্বাচনের প্রচারণায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন না, বিশেষ করে অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি যারা, তারা প্রচারে আছেন। আবার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী যিনি থাকেন, তাকে ভয়-ভীতি দেখানো- এ ধরনের অভিযোগ করে থাকেন।

‘সে ব্যাপারে আমাদের কড়া নির্দেশ আমরা লিখিতভাবে দিয়েছি। আগামী শনিবার এ উপলক্ষে আমরা প্রত্যেক জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে আহ্বান করেছি আসার জন্য। সে সময় নির্বাচন সুষ্ঠু-সুন্দর করার জন্য ম্যাসেজটি দেয়া হবে একেবারে সামনাসামনি।

‘যদি কেউ আচরণবিধি লঙ্ঘন করে থাকেন, তাহলে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে এবং ওনারা যদি করতে ব্যর্থ হন, আর তার কোনো প্রমাণ আমাদের কাছে আসে, তাহলে যে আইন রয়েছে, আমরা কিন্তু সেটি প্রয়োগ করতে পিছপা হবো না।’

নির্বাচন কর্মকর্তারা দায়িত্ব পালনে গাফিলতি বা অবহেলা করলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেন কমিশনার আলমগীর।

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে যে অভিযোগ দেয়া হয়েছে, সে ঘটনায় কী ব্যবস্থা নেয় হবে, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা জেলা প্রশাসক ও জেলা পুলিশের কাছে রিপোর্ট চেয়েছি। রিপোর্ট পাওয়ার পরে আমরা পরবর্তীতে সিদ্ধান্ত নেব।’

কমিশনের বিজ্ঞপ্তি

কমিশনের জনসংযোগ বিভাগের পরিচালক আসাদুজ্জামান আরজু স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে আচরণবিধির লঙ্ঘন হলে কঠোর হবে কমিশন।

আগামী ১৭ অক্টোবর দেশের ৬১ জেলা পরিষদে এ ভোট হবে। স্থানীয় সরকারের জনপ্রতিনিধিরা ভোট দিয়ে নির্বাচন করবেন তাদের প্রতিনিধি।

ইসির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘জেলা পরিষদ নির্বাচনে কোথাও কোথাও নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘন হচ্ছে এবং এ সংক্রান্ত খবর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হচ্ছে মর্মে নির্বাচন কমিশনের নজরে এসেছে। আচরণবিধি লঙ্ঘন করে সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ কোথাও কোথাও নির্বাচনি প্রচারণায় অংশ নিচ্ছেন, রঙিন পোস্টার মুদ্রণ করে প্রচার করছে এবং পোস্টারে নেতা-নেত্রীর ছবিও ছাপানো হচ্ছে। এছাড়াও রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে বিভিন্ন জনসভায় নির্বাচনি প্রচারণা চালানো হচ্ছে।’

নির্দেশনা আরও বলা হয়, নির্বাচন কমিশন এসব আচরণ বিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে তদন্তপূর্বক কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন প্রেরণের জন্য নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ইসির সেই ৮৫ নির্বাচন কর্মকর্তার চাকরি বাতিল করে প্রজ্ঞাপন
রাশিয়ার ইসির কনফারেন্সে যোগ দিতে সিইসিকে আমন্ত্রণ
আইএফআইসি ব্যাংকে সিডনিসানের ১০ হাজার সিসিটিভি
হাফেজ তাকরিমের অর্জনে গর্বিত মুশফিক
‘কারসাজির’ প্রি-ওপেনিং সেশন ফেরাচ্ছে বিএসইসি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
RAB has been trained on the advice of the United States Prime Minister

র‌্যাব তো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে, ট্রেনিংও তাদের: প্রধানমন্ত্রী

র‌্যাব তো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে, ট্রেনিংও তাদের: প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: বাসস
‘র‌্যাবের ওপরে তারা যখন স্যাংশন দিল, আমার প্রশ্নটা হচ্ছে র‌্যাব সৃষ্টি করেছে কে? র‌্যাব সৃষ্টি তো আমেরিকার পরামর্শ। আমেরিকা র‌্যাব সৃষ্টি করার পরামর্শ দিয়েছে। আমেরিকা তাদের ট্রেনিং দেয়। তাদের অস্ত্রশস্ত্র, তাদের হেলিকপ্টার, এমনকি তাদের ডিজিটাল সিস্টেম, আইসিটি সিস্টেম-সবই আমেরিকার দেয়া।’

যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শেই র‌্যাব গঠন করা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, তাদের দেয়া প্রশিক্ষণ অনুযায়ী র‌্যাব তার কার্যক্রম পরিচালনা করে।

বাংলাদেশে সন্ত্রাস দমনে র‌্যাব বিশেষ ভূমিকা রাখায় যুক্তরাষ্ট্র ‘নাখোশ’ হয়েছে কিনা, সে প্রশ্নও তুলেছেন সরকারপ্রধান।

গণভবনে বৃহস্পতিবার বিকেলে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র সফর নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘র‌্যাবের ওপরে তারা যখন স্যাংশন দিল, আমার প্রশ্নটা হচ্ছে র‌্যাব সৃষ্টি করেছে কে? র‌্যাব সৃষ্টি তো আমেরিকার পরামর্শ। আমেরিকা র‌্যাব সৃষ্টি করার পরামর্শ দিয়েছে। আমেরিকা তাদের ট্রেনিং দেয়। তাদের অস্ত্রশস্ত্র, তাদের হেলিকপ্টার, এমনকি তাদের ডিজিটাল সিস্টেম, আইসিটি সিস্টেম-সবই আমেরিকার দেয়া।’

একজন গণমাধ্যমকর্মী সরকার প্রধানের কাছে প্রশ্ন রাখেন সরকারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে কোনো টানাপড়েন চলছে কি না। গণতন্ত্র সম্মেলনে বাংলাদেশকে আমন্ত্রণ না জানানো, র‌্যাবের ওপর দেশটির নিষেধাজ্ঞাসহ নানা প্রসঙ্গ তুলে ধরে এই প্রশ্ন রাখেন সেই গণমাধ্যমকর্মী।

পরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমেরিকা যখন স্যাংশন দেয় বা কোনো কথা বলে, বা অভিযোগ আনে, আমার একটাই কথা, যেমন আপনারা ট্রেনিং দিয়েছেন, তেমন তারা কার্যক্রম করেছে। এখানে আমাদের করার কী আছে? আপনাদের ট্রেনিংটা যদি একটু ভালো হতো, তাহলে না কথা ছিল।’

র‌্যাব তো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পরামর্শে, ট্রেনিংও তাদের: প্রধানমন্ত্রী
এলিট ফোর্স র‌্যাবের বিভিন্ন কাজের সমালোচনা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। ফাইল ছবি

‘আমরা শাস্তি দেই, যুক্তরাষ্ট্র দেয় না’

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সদস্য অপরাধ করলে বাংলাদেশে তার শাস্তির বিধান থাকলেও যুক্তরাষ্ট্রে তেমন নজির নেই বলেও দাবি করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা সে র‌্যাব হোক, পুলিশ হোক, আর্মি হোক, যে হোক, কেউ যদি অপরাধ করে তার কিন্তু বিচার হয়। কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আপনারা দেখেছেন পুলিশ ইচ্ছা মতো গুলি করে মারলেও তাদের কিন্তু সহসা বিচার হয় না।

‘শুধু একটা বিচার হলো, আমেরিকার লোক সবাই যখন আন্দোলনে নামল, তখন ওই একটা বিচারই বোধ হয় তারা সারাজীবনে করতে পেরেছে। তা না হলে তো তারা কথায় কথায় গুলি করে মেরে ফেলে দেয়।

‘একটা বাচ্চা পকেটে হাত দিল, গুলি করে মেরে ফেলে দিল। একটা খেলনা পিস্তল নিয়ে তাকে মেরে ফেলে দিল। আমাদের কতজন বাঙালি মারা গেছে, সেখানে কিন্তু তারা কিছু বলেনি। সেই কথাগুলো আমি স্পষ্ট তাদেরকে বলেছি। আমি কিন্তু বসে থাকিনি। আমি মনে করি এটা আমাদের বলার কথা।’

‘যুক্তরাষ্ট্রের নিজেদের নিয়ে চিন্তা করা উচিত’

অন্য এক প্রশ্নে প্রধানমন্ত্রী র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞার যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

তিনি বলেন, ‘স্যাংশন তারা কতোটুকু তুলবে জানি না। তবে স্যাংশন দিয়ে তারা ক্ষতি যতটা করেছে, আমরা যাদের দিয়ে এ দেশে সন্ত্রাস দমন করেছি, তাদের ওপর স্যাংশন দেয়ার অর্থটা কী? সন্ত্রাসীদের মদদ দেয়া?

‘আমার এটাও প্রশ্ন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কাছে, তাহলে কী সন্ত্রাস দমনে তারা নাখোশ? ৪০ বছর ধরে আফগানিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে, সেই তালেবানের হাতে ক্ষমতা দিয়ে ভেগে চলে আসল আমেরিকার সৈন্যরা।’

যুক্তরাষ্ট্র ‘নিজেদের ব্যর্থতা’ স্বীকার করে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভিয়েতনামে ৩০ বছর যুদ্ধ করল, বাংলাদেশে পাকিস্তানিদের মদদ দিল, সেভেন ফ্লিট পাঠাতে চাইল। আমরা কিন্তু আমাদের দেশ স্বাধীন করেছি। তাদের নিজেদের চিন্তা নিজেদের করা উচিত।

‘এখন ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধে সমানে মদদ দিয়ে যাচ্ছে, স্যাংশন দিচ্ছে। স্যাংশন দিয়ে কার ক্ষতি হচ্ছে? সাধারণ মানুষের ক্ষতি হচ্ছে। কথায় কথায় একটা দেশ আরেকটা দেশকে স্যাংশন দেয় এটা কেমন কথা?’

যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশ সম্পর্ক নিয়ে বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়— আমরা এই নীতিতে বিশ্বাস করি। রাষ্ট্রে রাষ্ট্রে সমস্যা থাকতে পারে, থাকে। কিন্তু কারও সঙ্গে আমরা ঝগড়া বিবাদে যাই না। যুক্তরাষ্ট্র সময়ে সময়ে আমাদের ওপর নানা ধরনের স্যাংশন, অথবা একসময় জিএসপি বাদ দিল, নানা রকমের ঘটনা ঘটায়।’

গুম প্রসঙ্গে মরিয়ম মান্নান, ফরহাদ মজহারের কথা স্মরণ

বিরোধীরা সরকারের বিরুদ্ধে যে গুমের অভিযোগ আনেন, সেটি নিয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘কয়েকটা আন্তর্জাতিক সংস্থা খুব উৎফুল্ল, গুম-খুন, গুম-খুন, গুম-খুন। গুমের হিসাব যখন বের হতে শুরু করল তখন তো দেখা গেল সব থেকে বেশি গুম জিয়াউর রহমানের আমলেই শুরু। তারপর থেকে তো চলছে। তারপর আমরা যখন তালিকা চাইলাম, ৭৬ জনের তালিকা পাওয়া গেল। আর এই ৭৬ জনের মধ্যে কী পাওয়া গেছে, সেটা আপনারা নিজেরাই ভালো জানেন।’

সম্প্রতি মাকে গুম করার দাবি তুলে পরে বিব্রতকর অবস্থায় পড়া মরিয়ম মান্নানের ঘটনাও তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। উঠে আসে কবি ফরহাদ মজহারের গুমের ঘটনাও, যাকে গুম করার অভিযোগ নিয়ে তোলপাড়ের পর দেখা যায়, তিনি খুলনায় রেস্টুরেন্টে বসে খাওয়াদাওয়া করছেন, এমনকি বান্ধবীকে টাকাও পাঠান মোবাইল ব্যাংকিংসেবা ব্যবহার করে।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এর মধ্যে এমনও আছে, মাকে লুকিয়ে রেখে অন্যজনকে শায়েস্তা করতেও মাকে খুন করেছে, গুম করেছে, সে ঘটনাও বের হয়ে যাচ্ছে। আমি সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানাই, আপনারা খুঁজে খুঁজে সেগুলো বের করেন, আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদেরকে ধরে। কেউ বোনকে লুকিয়ে রেখে, গুম হয়েছে সেটা বলে। কেউ ঢাকা থেকে চলে গেলেন খুলনা। বলা হলো তাকে গুম করা হয়েছে। দেখা গেল নিউ মার্কেটে ঘুরে বেড়াচ্ছে খুলনায়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যে তালিকা, সে তালিকায় দেখা যাচ্ছে, ভারত থেকে পলাতক কিছু আসামি, তাদের নামও সেই তালিকায়। এটা কেমন করে হয়?’’

গুমের তালিকায় কোনো কোনো নাম আমেরিকায় লুকিয়ে আছে বলেও দাবি করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘সে রকমও তথ্য আছে। বিষয়গুলো তাদের সামনে তুলে ধরেছি, এই যে গুম গুম করেন আগে দেখেন সেটা কী কারণে?’

এসময় সংবাদকর্মীদের ওপও ক্ষোভ ঝাড়েন সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘গুমের ঘটনা যখনই ঘটে আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদের খুঁজে বের করে। সেই নিউজটা আসেই না বা পত্রিকায়ও আপনারা সেটা বড় করে দেখান না। গুমটা যত বড় করে দেখান, গুমটা যখন উদ্ধার হয়, ওটা যদি সমানভাবে দেখাতেন তাহলে তো বাংলাদেশের এই বদনামটা হতো না।’

অপপ্রচারের অভিযোগ

দেশের কিছু মানুষের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগও আনেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘তারা যেসব স্টেটে থাকে সেখানকার স্থানীয় সিনেটর, কংগ্রেসম্যান, তাদের কাছে নানা রকম বানোয়াট মিথ্যা তথ্য দিয়ে থাকে। দিয়ে দিয়ে একটা পরিবেশ সৃষ্টি করে।

‘আর সেই সঙ্গে দেশের বদনাম করে। যারা করে তারা নিজেরা একেকটা অপকর্ম করে কিন্তু দেশ ছাড়া। কোনো না কোনো অপরাধে তারা অপরাধী অথবা চাকরিচ্যুত।’

মুক্তিযুদ্ধবিরোধী ও স্বাধীনতাবিরোধী, যুদ্ধাপরাধীদের সন্তান ও তাদের প্রজন্মরাও এসব অপপ্রচারের সঙ্গে জড়িত বলেও অভিযোগ করেন শেখ হাসিনা।

যুদ্ধ নয়, শান্তি চাই

জাতিসংঘেও যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর স্পষ্ট অবস্থান তুলে ধরার বিষয়টি নিয়েও কথা বলেন তিনি। বলেন, ‘আমি কিন্তু আমার বক্তৃতায় এ কথা স্পষ্টভাবে বলে আসছি, এটাও বলেছি এ যুদ্ধ থামাতে হবে। শুধু অস্ত্র প্রতিযোগিতা আর যুদ্ধ করে শুধু অস্ত্র প্রস্তুতকারী বা বিক্রিকারী দেশ লাভবান হবে আর আমাদের মতো সাধারণ দেশের মানুষ না খেয়ে মরবে, কষ্ট পাবে, আমাদের দেশ কেন, ইউরোপের মানুষ তো কষ্টে আছে।’

দেশে দেশে যুদ্ধের প্রভাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ব্রিটেনে বিদ্যুতের দাম ৮০ শতাংশ বাড়িয়েছে। আমি যদি ৪০ পার্সেন্ট বৃদ্ধি করি আপনারা কেমনভাবে চিল্লাবেন? একটা উন্নত দেশ, তাদের সবকিছুই বিদ্যুতে, বাড়ির দরজাও খুলে বিদ্যুতে, চুলাও জ্বলে বিদ্যুতে সবই, আমাদের তো এখনও তা না। আমেরিকারও একই অবস্থা। প্রত্যেকটা জিনিসের দাম বেড়েছে।’

ইউরোপ কয়লা নিয়ে এত কথা বলেও কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ফিরে গেছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আমাদের ওপরেই প্রচণ্ড চাপ। অনেক কথা শুনতে হয়েছে। আমি তো কোনো চাপের কাছে মাথানত করিনি। যেটা আমার প্রয়োজন সেটা আমি করব। হ্যাঁ তাতে আমার দেশের এনভায়রনমেন্ট নষ্ট না হয়, সে ব্যাপারে আমি সচেতন। সেটা যে হচ্ছে না, তার প্রমাণও আমি দিয়েছি। আন্তর্জাতিক বহু ফোরামে এটা নিয়ে তর্ক হয়েছে। এখন পেলে জিজ্ঞেস করতাম, এখন আপনারা কী বলবেন, সেই আদিযুগেই তো ফিরতে হলো?’

আরও পড়ুন:
বিশ্বে দুর্ভিক্ষের শঙ্কা, দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী
বিদায় নেয়ার জন্য প্রস্তুত আমি: শেখ হাসিনা
সব ধর্মকে সম্মান দেখাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
যুক্তরাষ্ট্র থেকে ফিরলেন প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP is lying about grid disaster Hanif

গ্রিড বিপর্যয় নিয়ে মিথ্যাচার করছে বিএনপি: হানিফ

গ্রিড বিপর্যয় নিয়ে মিথ্যাচার করছে বিএনপি: হানিফ কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমিতে বৃহস্পতিবার সকালে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন মাহবুবউল আলম হানিফ। ছবি: নিউজবাংলা
‘সরকারের বিরুদ্ধে বলার মতো কিছু না পেয়ে বিদ্যুৎ বিপর্যয় নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে এক মেগাওয়াট বিদ্যুৎও দিতে পারেনি। এই ব্যর্থতা, অযোগ্যতা ঢাকতে এবং সরকারের উন্নয়ন অগ্রগতি দেখে ঈর্ষান্বিত হয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে।’

বিদ্যুতের গ্রিড বিপর্যয় নিয়ে বিএনপি নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ।

বৃহস্পতিবার সকালে কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমিতে এক কর্মশালায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

হানিফ বলেন, ‘বিদ্যুতের গ্রিড বিপর্যয় একটি দুর্ঘটনা। এ নিয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছেন মির্জা ফখরুলরা। চাহিদার তুলনায় পর্যাপ্ত বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। চাহিদার বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা রয়েছে বাংলাদেশের।

‘সরকারের বিরুদ্ধে বলার মতো কিছু না পেয়ে বিদ্যুৎ বিপর্যয় নিয়ে বিএনপি মিথ্যাচার করছে। বিএনপি ক্ষমতায় থাকতে এক মেগাওয়াট বিদ্যুৎও দিতে পারেনি। এই ব্যর্থতা, অযোগ্যতা ঢাকতে এবং সরকারের উন্নয়ন অগ্রগতি দেখে ঈর্ষান্বিত হয়ে নির্লজ্জ মিথ্যাচার করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিএনপি একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক দল, জামায়াত তাদের পরিপূরক। একই মায়ের দুই সন্তান। সেই দলের নেতাদের মুখে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার অভিযোগ মানায় না। বিশেষ একটি সম্প্রদায়ের আনুকূল্য পেতে তারা এসব বলছে।’

অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য আকম সরোয়ার জাহান বাদশাসহ দলীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

কর্মশালায় স্কুল কলেজের কয়েক শ ছাত্রছাত্রী অংশ নেয়।

গ্রিড বিপর্যয়

মঙ্গলবার বেলা ২টার দিকে ইস্টার্ন গ্রিড ফেল করার পর ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগ বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়ে। কয়েক ঘণ্টা বিদ্যুৎহীন থাকার পর সন্ধ্যা থেকে জেলা শহরগুলোতে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক হতে শুরু করে।

বেলা ২টা ৪ মিনিটে অনাকাঙ্ক্ষিত বিদ্যুৎ বিভ্রাটের পর ২টা ৩৬ মিনিটে আশুগঞ্জ-সিরাজগঞ্জ ২৩০ কেভি সঞ্চালন লাইন চালুর মাধ্যমে ক্রমান্বয়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট, কুমিল্লা, ময়মনসিংহের কিছু কিছু এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু করা হয়। এবং সতর্কতার সঙ্গে সেটা বাড়িয়ে বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার কাজ চলমান।

মন্তব্য

p
উপরে