× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Robbery and rape by bus for 3 hours
hear-news
player
print-icon

৩ ঘণ্টা বাস চালিয়ে ‘ডাকাতি ও ধর্ষণ’

৩-ঘণ্টা-বাস-চালিয়ে-ডাকাতি-ও-ধর্ষণ
মধুপুর থানার ওসি যাত্রীদের বরাতে জানান, ৩ ঘণ্টা ধরে বাস জিম্মি করে রাখে একদল তরুণ। তারা যাত্রীদের বেঁধে ডাকাতি করেন। এক নারী যাত্রীকে ধর্ষণও করেন।

টাঙ্গাইলের মধুপুরে চলন্ত বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা। এই অভিযোগে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেছেন বাসের এক যাত্রী।

মধুপুর থানায় বুধবার রাত ৮টার দিকে এই মামলা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মাজহারুল আমিন।

তিনি জানান, কুষ্টিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঈগল এক্সপ্রেসের বাসে মঙ্গলবার গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটেছে বলে যাত্রীরা অভিযোগ করেছেন। ২৪ থেকে ২৫ জন যাত্রী ছিলেন তাতে।

যাত্রীদের বরাতে ওসি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাসটি সিরাজগঞ্জের কাছাকাছি দিবারাত্রি হোটেলে রাতের খাবারের জন্য বিরতি দেয়। রাত দেড়টার দিকে আবার যাত্রা শুরু করে। পথে কাঁধে ব্যাগ বহনকরা ১০ থেকে ১২ জন তরুণ ওঠেন।

‘বাসটি বঙ্গবন্ধু সেতু পার হওয়ার পর ওই তরুণরা অস্ত্রের মুখে একে একে সব যাত্রীদের বেঁধে ফেলে। কয়েক মিনিটের মধ্যে সবার কাছ থেকে মোবাইল ফোন, টাকা ও গয়না লুট করে নেয়। এরপর এক নারী যাত্রীকে ধর্ষণ করে।’

ওসি অভিযোগের বরাতে আরও জানান, বাসটি বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে প্রায় তিন ঘণ্টা নিজেদের নিয়ন্ত্রণে রাখে ওই দলটি। পরে পথ বদলে টাঙ্গাইল-ময়মনসিংহ সড়কের মধুপুর উপজেলার রক্তিপাড়া জামে মসজিদের পাশে বালির ডিবিতে বাসটি উল্টিয়ে তারা পালিয়ে যায়।

খবর পেয়ে ঈগল এক্সপ্রেসের ব্যবস্থাপক আয়নাল হোসেন থানায় আসেন। তিনি বলেন, ‘আমাদের চালক, হেলপার ও সুপারভাইজারদের বেঁধে রেখে যাত্রীদের কাছে যা যা ছিল সব নিয়ে গেছে ডাকাতরা।’

ওসি জানান, ধর্ষণের অভিযোগ করা নারীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হবে। বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে।

আরও পড়ুন:
বাস্কেটবল কিংবদন্তি বিল রাসেলের চিরবিদায়
অর্থনীতিকে চাপমুক্ত করছে রেমিট্যান্স
মিরপুর বেড়িবাঁধে বাস-লেগুনা সংঘর্ষে কলেজছাত্রসহ নিহত ২
ধর্ষণ মামলায় যাবজ্জীবন
বাসচাপায় অটোরিকশার ৫ যাত্রী নিহত

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bus robbery gang rape 2 more accused confess

বাসে ডাকাতি-সংঘবদ্ধ ধর্ষণ: আরও ২ আসামির স্বীকারোক্তি

বাসে ডাকাতি-সংঘবদ্ধ ধর্ষণ: আরও ২ আসামির স্বীকারোক্তি
এই মামলায় এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ৯ জন। অন্য ৪ জন রিমান্ডে আছেন।

টাঙ্গাইলের মধুপুরে ঈগল এক্সপ্রেসের বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার আরও দুই আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

টাঙ্গাইলের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে বুধবার বিকেলে বিচারক নওরিন করিম তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

এই আসামিরা হলেন মো. সাগর ও মো. বাবু।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. হেলাল উদ্দিন এসব নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, এই মামলায় এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ৯ জন। অন্য ৪ জন রিমান্ডে আছেন।

পুলিশের বর্ণনায় যা ঘটেছিল

গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কুষ্টিয়া থেকে ঢাকাগামী ঈগল এক্সপ্রেসের বাসটি সিরাজগঞ্জ রোডে জনতা নামের খাবার হোটেলে যাত্রা বিরতি করে। সেখানে ৩০ মিনিটের মতো বিরতি শেষে বাসটি ফের ঢাকার উদ্দেশে যাত্রা করে।

পথে তিনটি স্থান থেকে অজ্ঞাতপরিচয় তিন-চারজন করে মোট ১২ জন ডাকাত যাত্রীবেশে বাসে ওঠেন এবং পেছনের দিকে খালি সিটে বসেন।

যমুনা সেতু (বঙ্গবন্ধু সেতু) পার হওয়ার আধা ঘণ্টা পর (রাত দেড়টার দিকে) টাঙ্গাইলের নাটিয়াপাড়া এলাকায় ডাকাতরা বাসটির নিয়ন্ত্রণ নেয়। ছুরি, চাকুসহ দেশীয় অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে বাসের চালককে সিট থেকে উঠিয়ে হাত-পা বেঁধে পেছনে সিটের নিচে ফেলে রাখে।

টহল পুলিশের কাছে ধরা পড়া এড়াতে তারা বাসটিকে গোড়াই থেকে ইউটার্ন করে এলেঙ্গা হয়ে ময়মনসিংহ রোড ধরে যেতে থাকে। এই সময়ের মধ্যে ডাকাত দল বাসটির জানালার পর্দা ও যাত্রীদের পরনের বিভিন্ন কাপড় ছিঁড়ে চোখ এবং হাত বেঁধে ফেলে।

পরে ডাকাতরা বাসের ২৪ যাত্রীর কাছ থেকে টাকা, মোবাইল ফোন, স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয়। বাসের এক নারীকে পাঁচ-ছয়জন ধর্ষণ করে।

আরও পড়ুন:
বাস মালিকদের দাপটে অসহায় সরকারি সংস্থা
বাসে ডাকাতি-ধর্ষণ: চারজনের জবানবন্দি, রিমান্ডে ৬
বাসে ডাকাতি-ধর্ষণ: ১০ জনকে আদালতে তোলা হচ্ছে বিকেলে  

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Sitakunda fire Expert committee headed by BUET teacher directs

সীতাকুণ্ডে আগুন: বুয়েট শিক্ষকের নেতৃত্বে বিশেষজ্ঞ কমিটির নির্দেশ

সীতাকুণ্ডে আগুন: বুয়েট শিক্ষকের নেতৃত্বে বিশেষজ্ঞ কমিটির নির্দেশ চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে লাগা আগুন থেকে একটি মরদেহ নিয়ে যাচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। ফাইল ছবি
অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে না এবং এ ঘটনায় নিহতদের পরিবার ও আহতদেরকে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ আগুনের ঘটনা তদন্তের জন্য বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের একজন অধ্যাপকের নেতৃত্বে বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

পাশাপাশি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কেন আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে না এবং এ ঘটনায় নিহতদের পরিবার ও আহতদেরকে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে আদালত।

বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া এবং বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ বুধবার এ আদেশ দেয়।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির পল্লব, তার সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী মো. ইমরুল কায়েস খান, শোয়েব মাহমুদ এবং সামসুর রহমান বাদল।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায়।

আইনজীবী হুমায়ন কবির পল্লব জানান, কমিটি গঠনের আদেশের পাশাপাশি ফায়ার সার্ভিসকে অত্যাধুনিক সরঞ্জাম কেন সরবরাহ করা হবে না তা জানতে চেয়েছে আদালত।

এ ছাড়া কেমিক্যাল রক্ষণাবেক্ষণে জন্য সুনির্দিষ্ট স্থান নির্ধাণন করার নির্দেশনা ও কেমিক্যাল ডিপোতে সংরক্ষিত কেমিক্যালের পরিমাণ, কী ধরনের কেমিক্যাল রাখা হবে তা প্রদর্শনের নির্দেশনা কেন দেয়া হবে না রুলে তাও জানতে চাওয়া হয়েছে।

গত ৪ জুন রাতে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় অর্ধশত মানুষ নিহত এবং আহত হয় শতাধিক।

ওই ঘটনায় নিহত ও আহতদের জন্য পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ চেয়ে গত ২৯ জুন হাইকোর্টে রিট করে দুটি মানবাধিকার সংস্থা ‘ল অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশন ট্রাস্ট’ এবং সিসিবি ফাউন্ডেশনের পক্ষে আইনজীবী পল্লব।

রিটে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ সচিব, শিল্প সচিব, বাণিজ্য সচিব, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক, স্মার্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বিএম কন্টেইনার বিডি লিমিটেডের ব্যাবস্থাপনা পরিচালকসহ ২০ জনকে বিবাদী করা হয়। রিটের শুনানি নিয়ে বুধবার এ আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

আরও পড়ুন:
সীতাকুণ্ডে আগুন: ১১ দফা দাবিতে পাঁচ জেলায় ধর্মঘট
সীতাকুণ্ডে আগুন: সব সংস্থার ছাড়পত্র ও লাইসেন্স থাকার দাবি
সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: ডিএনএ পরীক্ষায় ৮ মরদেহ শনাক্ত
বিএম ডিপোতে আরও দেহাবশেষ 
সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: এক মাস পর আরও দেহাবশেষ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BRTC is helpless under the pressure of bus owners

বাস মালিকদের দাপটে অসহায় সরকারি সংস্থা

বাস মালিকদের দাপটে অসহায় সরকারি সংস্থা ফরিদপুরে বিআরটিসি বাসের যাত্রীদের নামিয়ে দিয়ে বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে জেলা বাস মালিক সমিতি।
মঙ্গলবার বোয়ালমারী থেকে বিআরটিসি বাস চালু করে কর্তৃপক্ষ। উদ্বোধনের পরদিন বুধবার সকাল ৭টায় বোয়ালমারী টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার গুলিস্তানের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে একটি বাস। পথে ভাঙ্গা বাস টার্মিনালে এসে যাত্রী তুলতে গেলে সেটিকে আটকে দেয় সেখানকার বাস মালিক সমিতির লোকজন। নামিয়ে দেয়া হয় যাত্রীদের।

উদ্বোধনের একদিন পরেই ফরিদপুরের বোয়ালমারী থেকে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা চলাচলে সরকারি সংস্থা বিআরটিসি বাস বন্ধ করে দিয়েছে জেলা বাস মালিক সমিতি। এমনকি মাঝপথ থেকে নামিয়ে দেয়া হয়েছে যাত্রীদের। তাদের সঙ্গে করা হয়েছে দুর্ব্যবহার, বাসের শ্রমিকদের হাত পা কেটে দেয়ার হুমকিও এসেছে।

পরিবহন মালিকদের কাছে সরকারি সংস্থার এই করুণ ‘আত্মসমর্পণে’ যাত্রীরা একইসঙ্গে হতাশ ও ক্ষুব্ধ। এর কারণ, বিআরটিসির বাসে ভাড়া যেমন তুলনামূলক কম, সেই সঙ্গে আসনও কিছুটা আরামদায়ক।

এই অবস্থায় প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা না নিলেও রুখে দাঁড়িয়েছে জনতা। বিআরটিসি বাস চলতে দেয়া না হলে বোয়ালমারীতে ফরিদপুর জেলা বাস মালিক সমিতির কোনো বাস ঢুকতে দেয়া হবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে তারা।

পদ্মাসেতু চালু হওয়ার আগে থেকেই ফরিদপুরের বিভিন্ন উপজেলা থেকে বিআরটিসি বাস চলাচলের দাবি উঠে। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিআরটিসি কর্তৃপক্ষ ফরিদপুরের নগরকান্দা থেকে বাস চালু করে।

মঙ্গলবার বোয়ালমারী থেকে বিআরটিসি বাস চালু করে কর্তৃপক্ষ। উদ্বোধনের পরদিন বুধবার সকাল ৭টায় বোয়ালমারী টার্মিনাল থেকে যাত্রী নিয়ে ঢাকার গুলিস্তানের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করে একটি বাস।

পথে ভাঙ্গা বাস টার্মিনালে এসে যাত্রী তুলতে গেলে সেটিকে আটকে দেয় সেখানকার বাস মালিক সমিতির লোকজন। নামিয়ে দেয়া হয় যাত্রীদের। ফলে চরম বিপাকে পড়েন তারা।

বাসের সুপারভাইজার তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের বাসটি সকাল ৭টায় ভাঙ্গা টার্মিনালের কাছে পৌঁছালে সেটিকে আটকে দেয়া হয়। আমাকে মারধর করে এবং হাত পা কেটে ফেলার হুমকি দেয়।’

যাত্রী ইমরান ফরহাদ বলেন, ‘আমাদের বাসটি ভাঙ্গা বাস টার্মিনালে আসার পর বেশ কয়েক ব্যক্তি চালকের কাছ থেকে চাবি ছিনিয়ে নেয়। তারা চালক ও হেলপারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। যাত্রীদের সঙ্গেও তারা অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন।’

বাস বন্ধ করে দেবার খবর বোয়ালমারীতে পৌঁছালে স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

বেশ কয়েকজন ক্ষুব্ধ মানুষ ঘোষণা দেন, বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করা হলে ফরিদপুর জেলা বাস মালিক সমিতির কোনো গাড়িই বোয়ালমারীর উপর দিয়ে চলাচল করতে দেয়া হবে না।

বিআরটিসির ম্যানেজার (অপারেশন) মো. কামরুজ্জামান বলেন, ‘বিআরটিসির বাস বন্ধ করার কোনো এখতিয়ার নেই জেলা বাস মালিক গ্রুপের। পরিবহন সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সরকার বদ্ধপরিকর। সেই হিসাবে বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করা ঠিক হয়নি।’

ফরিদপুর জেলা বাস মালিক গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আনিচুর রহমান বলেন, ‘বিআরটিসি সারাদেশের ২৩ রুটে যে রুট পারমিট দিয়েছে সেখানে কোন উপজেলার অনুমতি নেই। তাছাড়া জেলা বাস মালিক গ্রুপ থেকেও অনুমতি নেয়নি। ফলে আমরা বিআরটিসি বাস চলাচল বন্ধ করে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে ফরিদপুরের পুলিশ সুপার মো. আলিমুজ্জামান বলেন, ‘বাস চলাচলের বিষয়ে একটি ঝামেলার সৃষ্টি হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে। আশা করছি এ সমস্যাটির সমাধান হয়ে যাবে।

‘বিআরটিসির পক্ষ থেকে কোনো অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
বাসে ডাকাতি-ধর্ষণ: ১০ জনকে আদালতে তোলা হচ্ছে বিকেলে  
বিআরটিএ ঘুমিয়ে, ফায়দা নিয়েই যাচ্ছে রাইদা
সরকার পতন নিয়ে সংশয়ে আব্বাস-গয়েশ্বর
স্বাধীন পরিবহন ভাড়া কাটে ‘স্বাধীনভাবে’
চলন্ত বাসে ডাকাতির সময় ধর্ষণ ‘রতনের নির্দেশে’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Gold shop theft 2 accused in jail after remand

স্বর্ণের দোকানে চুরি: রিমান্ড শেষে ২ আসামি কারাগারে

স্বর্ণের দোকানে চুরি: রিমান্ড শেষে ২ আসামি কারাগারে
রাজধানীর কচুক্ষেতে রজনীগন্ধা মার্কেটে স্বর্ণের দোকানে চুরির মামলায় প্রথমে আলাউদ্দিন ও পরে শাহজালালকে গ্রেপ্তার করা হয়। এ সময় শাহজালালের কাছ থেকে ১৬ ভরি ৪ আনা ওজনের স্বর্ণালংকার উদ্ধার করা হয়।

রাজধানীর কচুক্ষেতে রজনীগন্ধা মার্কেটে স্বর্ণের দোকানে চুরির মামলায় আসামি আলাউদ্দিন ও শাহজালালকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

দুই দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার আসামিদের আদালতে হাজির করে তদন্ত কর্মকর্তা মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের কারাগারে রাখার আবেদন করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দিন তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে রোববার দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে সাত দিন রিমান্ডের আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। আদালত দুদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

স্বর্ণের দোকানে চুরির মামলায় চট্টগ্রামের কর্ণফুলী থানার স্বর্ণারটেক গ্রাম থেকে ৫ আগস্ট রাতে আলাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ৭ আগস্ট সন্ধ্যায় কুমিল্লার সদর দক্ষিণ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় শাহজালালকে। এ সময় তার হেফাজত থেকে বাদীর শনাক্তমতে উদ্ধার করা হয় ১৬ ভরি ৪ আনা ওজনের স্বর্ণালংকার।

মামলা থেকে জানা যায়, রজনীগন্ধা মার্কেটের নিউ বিসমিল্লাহ্ জুয়েলার্সের মালিক ২৯ জুলাই দুপুরে পার্শ্ববর্তী রূপনগর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করতে যান। নামাজ শেষে ফেরার পথে তিনি জানতে পারেন যে তার দোকানের শাটার খোলা। তিনি দ্রুত দোকানে গিয়ে দেখেন স্বর্ণের বিভিন্ন ধরনের ৪০ ভরি ও রুপার ৫০ ভরি গয়না চুরি হয়ে গেছে। এ ঘটনার পরদিন রূপনগর থানায় একটি মামলা করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
বিজিবির কাছ থেকে ইয়াবাসহ মাদককারবারি ছিনতাই
যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
একরাম হত্যার ৭ বছর পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কারাগারে
অস্ত্রসহ ছাত্রদল নেতা ও হত্যা মামলায় কাউন্সিলর গ্রেপ্তার
১৪ বছর পর ফিরলেন রুবেল, জেল খেটেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
4 life for human trafficking

মানব পাচারের দায়ে ৪ জনের যাবজ্জীবন

মানব পাচারের দায়ে ৪ জনের যাবজ্জীবন
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) রকিব উদ্দিন বলেন, ‘১৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে অভিযোগ প্রমাণের ভিত্তিতে বিচারক চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। পাশাপাশি একটি ধারায় ১ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।’

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে মানব পাচার মামলায় চারজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। খালাস দেয়া হয়েছে চারজনকে।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক নাজমুল হক শ্যামল তিন আসামির উপস্থিতিতে বুধবার দুপুরে এ রায় দেন।

আদালত পুলিশের পরিদর্শক আসাদুজ্জামান নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দণ্ডিতরা হলেন মর্জিনা বেগম, জেসমিন বেগম, মো. টিটু ও সাহাবুদ্দিন। এর মধ্যে জেসমিন বেগম পলাতক।

পরিদর্শক জানান, ২০১৬ সালের ২৭ ডিসেম্বর বায়েজিদ নামের ৮ বছরের এক শিশু নিখোঁজ হয়। পরে বায়েজিদের মা নারায়ণগঞ্জ র‍্যাব-১১-এর কাছে অভিযোগ করেন, তার ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ চাওয়া হচ্ছে। মুক্তিপণ না পেলে বায়েজিদকে হত্যার হুমকিও দিয়েছেন অপহরণকারীরা। এরপর ১৮ জানুয়ারি সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগং রোড এলাকা থেকে বায়েজিদকে উদ্ধার করে র‍্যাব।

এ ঘটনায় ৯ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর সায়েদাবাদ ও সিদ্ধিরগঞ্জ বাগমারা এলাকা থেকে ৮ জনকে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মানব পাচার আইনে মামলা হয়।

ওই বছরের শেষের দিকে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেন তদন্ত কর্মকর্তা। এতে বলা হয়, অপহরণকারীরা বায়েজিদকে অপহরণের কথা স্বীকার করেন। একই সঙ্গে তারা আরও অন্তত ১৭টি শিশু অপহরণের কথাও জানান।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) রকিব উদ্দিন বলেন, ‘১৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে অভিযোগ প্রমাণের ভিত্তিতে বিচারক চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। পাশাপাশি একটি ধারায় ১ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কুষ্টিয়ায় জোড়া খুনের ১৩ বছর পর ৫ জনের যাবজ্জীবন
স্কুলছাত্রী ধর্ষণ, অটোচালকের যাবজ্জীবন
প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে ভাতিজিকে হত্যা, ২ জনের যাবজ্জীবন
তাইজ হত্যার ১০ বছর পর ৩ জনের যাবজ্জীবন
কৃষক হত্যায় যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Catch the heist in 40 seconds while searching for the detectives motorcycle

গোয়েন্দার মোটরসাইকেল খুঁজতে গিয়ে ‘৪০ সেকেন্ডে চুরির চক্র’ পাকড়াও

গোয়েন্দার মোটরসাইকেল খুঁজতে গিয়ে ‘৪০ সেকেন্ডে চুরির চক্র’ পাকড়াও 
অভিযানে গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা। ছবি: নিউজবাংলা
যেসব মোটরসাইকেলে অতিরিক্ত লক দেয়া থাকে না এবং দুর্বল লক, সেগুলো টার্গেট করত চক্রটি। এরপর চক্রটি তাদের কাছে থাকা মাস্টার চাবি দিয়ে ৪০ থেকে ৫০ সেকেন্ডের মধ্যে মোটরসাইকেল চুরি করে পালিয়ে যেত। পরে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকায় এসব মোটরসাইকেল বিক্রি করা হতো।

রাজধানীর লালবাগ কেল্লার সামনে থেকে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার (এনএসআই) এক কর্মকর্তার ব্যক্তিগত মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) লালবাগ বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) মো. জাফর হোসেন সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, যেসব মোটরসাইকেলে অতিরিক্ত লক দেয়া থাকে না এবং দুর্বল লক, সেগুলো টার্গেট করত চক্রটি। এরপর চক্রটি তাদের কাছে থাকা মাস্টার চাবি দিয়ে ৪০ থেকে ৫০ সেকেন্ডের মধ্যে মোটরসাইকেল চুরি করে পালিয়ে যেত। পরে ৩০ থেকে ৫০ হাজার টাকায় এসব মোটরসাইকেল বিক্রি করা হতো।

লালবাগ থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন চক্রের মূলহোতা সোহেল ও তার সহযোগী সুনীল, হুমায়ুন, হৃদয়, আওয়াল ও স্বাধীন।

গ্রেপ্তারের সময় তাদের কাছ থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে চুরি করা ১০টি মোটরসাইকেল ও চুরিতে ব্যবহৃত বেশ কিছু নকল চাবি উদ্ধার করা হয়।

উপকমিশনার জাফর হোসেন জানান, গত ২৪ জুলাই লালবাগ কেল্লার সামনে থেকে এক এনএসআই কর্মকর্তার মোটরসসাইকেল চুরি হয়। লালবাগ থানায় চুরির অভিযোগ করলে শুরু হয় তদন্ত কার্যক্রম।

তিনি জানান, প্রথমে মুন্সীগঞ্জের লৌহজং এলাকা থেকে চোর চক্রের দুইজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাদের দেয়া তথ্যে শরীয়তপুর ও মুন্সীগঞ্জ থেকে চক্রের বাকিদের গ্রেপ্তার করা হয়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, লালবাগ জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) কে এন রায় নিয়তির নেতৃত্বে মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি জানান, চোর চক্রের অন্যতম হোতা সোহেল গত ৫ থেকে ৬ বছর ধরে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছিলেন। চক্রের সদস্যরা নকল চাবি ব্যবহার করে মুহূর্তেই মোটরসাইকেল চুরি করে পালিয়ে যেতেন। চক্রের বাকি সদস্যদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

আরও পড়ুন:
ডিএমপিতে দুই ডিসির পদায়ন
কলেজছাত্রকে ‘হাতুড়িপেটা’, এসআইয়ের নামে মামলা
৯৯৯-এ কল: উদ্ধার পেলেন পুলিশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Manslaughter for rejecting a proposal of love Sentence of youth to death

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা: যুবকের মৃত্যুদণ্ড

প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় হত্যা: যুবকের মৃত্যুদণ্ড রায়ের পর কারাগারে নেয়ার পথে দণ্ডিত সঞ্জয়। ছবি: নিউজবাংলা
গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন সঞ্জয় চন্দ্র। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বুধবার আসামির উপস্থিতিতে আদালত এ রায় দেয়। রায়ের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

সিরাজগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফজলে খোদা মো. নাজির এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) আব্দুর রহমান নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দণ্ডিত ২২ বছরের শ্রী সঞ্জয় চন্দ্র সরকারের বাড়ি বেলকুচি উপজেলার শোলাকুড়া গ্রামে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, শোলাকুড়া গ্রামের শ্রী পবিত্র সরকারের মেয়ে পূজা সরকারকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে প্রতিবেশী সঞ্জয় চন্দ্র প্রায়ই প্রেমের প্রস্তাব দিত। পূজা প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে। এরই মধ্যে পূজাকে অন্যত্র বিয়ে দেয়ার জন্য পাত্র খুঁজতে থাকেন বাবা। পাত্রপক্ষ পূজা সরকারকে দেখতেও আসে।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে পূজাকে হত্যার পরিকল্পনা করেন সঞ্জয়। ২০২১ সালের ৩ মে বাড়িতে ঢুকে পূজাকে ধারালো ছুরি দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করে পালিয়ে যান তিনি।

এ ঘটনায় পূজার বাবা বেলকুচি থানায় হত্যা মামলা করেন। গ্রেপ্তারের পর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন সঞ্জয় চন্দ্র। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বুধবার আসামির উপস্থিতিতে আদালত এ রায় দেয়। রায়ের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন:
কন্যাকে পায়ে পিষে হত্যা, বাবার মৃত্যুদণ্ড
ব‍্যবসায়ী হত‍্যা মামলায় ২ জনের মৃত‍্যুদণ্ড
স্ত্রী হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড
ক্ষমা বিশ্বাস হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড
আপিলে খালাস মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি

মন্তব্য

p
উপরে