× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Money Laundering Case Barkat Ruble complaint framing hearing delayed again
hear-news
player
print-icon

অর্থপাচার মামলা: ফের পেছাল বরকত-রুবেলের অভিযোগ গঠনের শুনানি

অর্থপাচার-মামলা-ফের-পেছাল-বরকত-রুবেলের-অভিযোগ-গঠনের-শুনানি
ফরিদপুরের আলোচিত দুই ভাই সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও ইমতিয়াজ হাসান রুবেল। ছবি: সংগৃহীত
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় রাষ্ট্রপক্ষ সময়ের আবেদন করে। বিচারক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে অভিযোগ গঠনের জন্য নতুন এ দিন ঠিক করেন।

দুই হাজার কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে করা মামলায় ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও তার ভাই ইমতিয়াজ হাসান রুবেলসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে অবশিষ্ট অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য তারিখ পিছিয়ে আগামী ১ সেপ্টেম্বর ঠিক করেছে আদালত।

মঙ্গলবার ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০-এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের আদালত নতুন এ দিন ঠিক করে।

এদিন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে উপস্থিত না হওয়ায় রাষ্ট্রপক্ষ সময়ের আবেদন করে। বিচারক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে অভিযোগ গঠনের জন্য নতুন এ দিন ঠিক করেন।

এর আগে গত ৭ মার্চ আসামিদের নির্দোষ দাবি করে আইনজীবী শাহিনুর রহমান অব্যাহতির আবেদন করেন। এরপর অভিযোগ গঠনের বিষয়ে শুনানি শুরু হয়। তবে তা শেষ না হওয়ায় অবশিষ্ট অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আদালত দিন ঠিক করে।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন ফরিদপুর আওয়ামী লীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম খন্দকার লেভী, আসিকুর রহমান ফারহান, খন্দকার মোহতেসাম হোসেন বাবর, এ এইচ এম ফুয়াদ, ফাহাদ বিন ওয়াজেদ ওরফে ফাহিম, কামরুল হাসান ডেভিড, মুহাম্মদ আলি মিনার ও তারিকুল ইসলাম ওরফে নাসিম।

২০২১ সালের ৩ মার্চ বরকত, রুবেলসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) উত্তম কুমার বিশ্বাস। ওই বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশের আদালত এ অভিযোগপত্র গ্রহণ করে।

২০২০ সালের ২৬ জুন অর্থপাচারের অভিযোগে ঢাকার কাফরুল থানায় বরকত ও রুবেলের বিরুদ্ধে মামলা করেন সিআইডির পরিদর্শক এস এম মিরাজ আল মাহমুদ। মামলায় দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে ২ হাজার কোটি টাকা উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২০১০ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত ফরিদপুরের এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের মালিক হন বরকত ও রুবেল। এ ছাড়া তারা মাদক কারবার ও ভূমি দখল করে অবৈধ সম্পদ অর্জন করেছেন। এসি ও নন-এসিসহ ২৩টি বাস, ডাম্প ট্রাক, বোল্ডার ও পাজেরো গাড়ির মালিক হয়েছেন দুই ভাই।

অভিযোগে বলা হয়, উল্লেখযোগ্য পরিমাণ অর্থ হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেছেন বরকত-রুবেল। রাজবাড়ীতে ১৯৯৪ সালে এক আইনজীবী হত্যা মামলারও আসামি ছিলেন তারা।

এজাহারে আরও বলা হয়, গত ১৮ জুন মিরাজ আল মাহমুদ তদন্ত কর্মকর্তা নিযুক্ত হন। প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, বরকত ও রুবেল অন্তত ২ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন।

আরও পড়ুন:
অর্থ পাচার মামলা: বরকত-রুবেলের অভিযোগ গঠনের শুনানি পেছাল
১০ মাসে ৮৬৬ কোটি টাকা জব্দ করেছে বিএফআইইউ
‘কর নিয়ে পাচার অর্থ ফেরানো অন্যায়কে স্বীকৃতি দেয়া’
রপ্তানির মাধ্যমে অর্থ পাচার রোধে নতুন নির্দেশনা
এনু-রুপনের অর্থ পাচার মামলার রায় পেছাল ২৫ এপ্রিল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Life sentence for killing son in law to settle daughters quarrel

মেয়ের কলহ মেটাতে জামাতাকে হত্যায় যাবজ্জীবন

মেয়ের কলহ মেটাতে জামাতাকে হত্যায় যাবজ্জীবন
মামলার বাদী শারমীন আক্তারের সঙ্গে ওমর ফারুকের বিয়ে হয় ২০১৪ সালে। এর পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে নানা বিষয়ে তার কলহ চলত। বিষয়টি সৎবাবা আবু বাক্কারকে বিভিন্ন সময় তিনি জানিয়েছিলেন। এসব কারণে মেয়ের জামাইয়ের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন বাক্কার।

কিশোরগঞ্জে সৎমেয়ের জামাইকে কুপিয়ে হত্যার দায়ে আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তাকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ছয় মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হবে।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. সায়েদুর রহমান বুধবার বেলা আড়াইটার দিকে এ রায় দেন।

আসামি ৬০ বছর বয়সী আবু বাক্কারের বাড়ি কিশোরগঞ্জ পৌর এলাকার তারাপাশা এলাকায়।

আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী আবু সাঈদ ইমাম নিউজবাংলাকে এসব নিশ্চিত করেছেন।

মামলার বাদী শারমীন আক্তারের সঙ্গে ওমর ফারুকের বিয়ে হয় ২০১৪ সালে। এর পর থেকেই স্বামীর সঙ্গে নানা বিষয়ে তার কলহ চলত। বিষয়টি সৎবাবা আবু বাক্কারকে বিভিন্ন সময় তিনি জানিয়েছিলেন। এসব কারণে মেয়ের জামাইয়ের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন বাক্কার।

২০১৯ সালের ৩০ মে সকালে ওমর ফারুক স্ত্রীকে নিতে শ্বশুরবাড়ি গেলে বাক্কারের সঙ্গে তর্কাতর্কি হয়। একপর্যায়ে দা দিয়ে তাকে কুপিয়ে হত্যা করেন বাক্কার। সে রাতেই বাক্কারকে আসামি করে কিশোরগঞ্জ মডেল থানায় হত্যা মামলা করেন মেয়ে শারমিন।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধু হত্যার তদন্তে কমিশনের রূপরেখা প্রস্তুত: আইনমন্ত্রী
টিপু-প্রীতি হত্যা: সেই বাইক-পিস্তলসহ গ্রেপ্তার ৫
গৃহবধূকে ‘শিলের আঘাতে হত্যা’, স্বামী আটক
শিশুকে ‘ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে’ হত্যা
শ্বশুরবাড়িতে জামাইকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
500 bikes stolen by making master key

মাস্টার চাবি বানিয়ে ৫০০ বাইক চুরি

মাস্টার চাবি বানিয়ে ৫০০ বাইক চুরি
ডিবিপ্রধান হারুন অর রশীদ জানান, মোটরসাইকেল চুরির জন্য তাদের টার্গেটেড এরিয়া ছিল পুরান ঢাকা। ওই এলাকায় সুজুকি জিক্সার মডেলের মোটরসাইকেল চুরি করতেন তারা। গত কয়েক বছরে এই চক্রের সদস্যরা অন্তত ৫০০ মোটরসাইকেল চুরি করেছেন।

বিভিন্ন সময়ে তৈরি করেছেন নানা ধরনের মাস্টার চাবি। সেই চাবি দিয়ে পুরান ঢাকাকে টার্গেট করে কয়েক বছরে চুরি করেছেন পাঁচ শতাধিক মোটরসাইকেল। চোরাই মোটরসাইকেল কেরানীগঞ্জ, দোহার, মুন্সীগঞ্জসহ ঢাকার পাশের বিভিন্ন এলাকায় কম দামে বিক্রি করতেন চোর চক্র।

সম্প্রতি রাজধানীর ওয়ারী ও গেন্ডারিয়া থানায় দুটি মোটরসাইকেল চুরি মামলার তদন্ত করতে গিয়ে ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ফুটেজ ও তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় মোটরসাইকেল চোর চক্রের ৫ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা (ডিবি) ওয়ারী বিভাগ।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান ডিএমপির গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

রাজধানীর শনির আখড়া ও ধলপুর এলাকায় মঙ্গলবার অভিযান চালিয়ে মোটরসাইকেল চোর চক্রের পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়৷ তারা হলেন- চক্রের হোতা নূর মোহাম্মদ, অন্যতম সহযোগী রবিন, সজল, মনির ও আকাশ।

অভিযানে তাদের কাছ থেকে ১৩টি চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, ‘প্রথমে মোটরসাইকেল চোর চক্রের দুই সদস্য নূর মোহাম্মদ ও রবিনকে যাত্রাবাড়ীর শনির আখড়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে তাদের দেয়া তথ্যে অভিযান চালিয়ে চক্রের অন্য তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি জানান, মোটরসাইকেল চুরির জন্য তাদের টার্গেটেড এরিয়া ছিল পুরান ঢাকা। ওই এলাকায় সুজুকি জিক্সার মডেলের মোটরসাইকেল চুরি করতেন তারা। গত কয়েক বছরে এই চক্রের সদস্যরা অন্তত ৫০০ মোটরসাইকেল চুরি করেছেন।

দ্রুত বড়লোক হওয়ার নেশায় মোটরসাইকেল চুরি

জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে ডিবি জানায়, নূর মোহাম্মদ মূলত জুরাইন এলাকায় একটি কাঠের দোকানে নকশার কাজ করতেন। আগে তার বাসা ছিল ঢাকার কেরানীগঞ্জে হাসনাবাদ এলাকায়। একদিন হাসনাবাদ গলির ভেতর চা দোকানে রবিনের সঙ্গে পরিচয় হয় তার। দুইজন মিলে পরিকল্পনা করেন, কীভাবে দ্রুত সময়ে টাকাওয়ালা হওয়া যায়। নূর মোহাম্দ রবিনকে জানান, তার কাছে করাত ধার দেয়ার রেত আছে, যা দিয়ে মোটরসাইকেলের চাবি পাতলা করে ‘মাস্টার কি’ বানানো যাবে।

পরিকল্পনা মোতাবেক রবিনের জিক্সার মোটর সাইকেলের চাবি রেত দিয়ে ঘঁষে পাতলা করে শারিঘাট, হাসনাবাদ, দক্ষিণ কেরানীগঞ্জে পার্ক করা একটি জিক্সার মোটরসাইকেল পরীক্ষামূলক চুরি করেন। এর পর থেকে তারা এ চাবিকেই ‘মাস্টার কি’ হিসেবে ব্যবহার করে দুই বন্ধু দীর্ঘদিন ধরে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছেন বলে জানায় ডিবি।

ডিবির প্রধান হারুন বলেন, ‘চোরাই মোটরসাইকেল বিক্রি করার জন্য তারা ঢাকার দোহারে সজলকে তাদের চক্রের সদস্য করে নেন। ঢাকা মহানগর এলাকা থেকে বাইক চুরি করে নিরাপদ রোড হিসেবে পোস্তগোলা ব্রিজ পার হয়ে মাওয়া রোডের শ্রীনগর বাইপাস হয়ে মেঘুলা বাজার, দোহার রুট হিসেবে ব্যবহার করে।

‘অন্যদিকে বাবুবাজার ব্রিজ পার হয়ে কেরানীগঞ্জ, জয়পাড়া ও দোহার এলাকা যাওয়ার রুট হিসেবে ব্যবহার করেন। সজল ও মনির দোহারের বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে চোরাই মোটরসাইকেলগুলোকে ইন্ডিয়ান বর্ডার ক্রস গাড়ি বলে বিক্রি করতেন।’

প্রতিটি চোরাই মোটরসাইকেল তারা ৪০ হাজার থেকে ৮০ হাজার টাকায় বিক্রি করতেন। বিক্রির টাকা নূর মোহাম্মদ ৪০ শতাংশ, রবিন ৩০ শতাংশ ও অবশিষ্ট টাকা অন্যরা ভাগ করে নিতেন।

আসামিদের বরাতে ডিবি আরও জানায়, তারা ২০১৫ সাল থেকে মোটরসাইকেল চুরি করে আসছেন। এ পর্যন্ত ৫০০টিরও বেশি মোটরসাইকেল চুরি করেছেন।

গোয়েন্দা প্রধান জানান, বিভিন্ন থানায় গ্রেপ্তার আসামি নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে চারটি মামলা, রবিনের বিরুদ্ধে তিনটি মামলা এবং অন্য তিনজনের বিরুদ্ধে একটি করে মামলার তথ্য পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন:
সরকারি গাড়ির তেল চুরি মাসে ১৮ হাজার লিটার
সার্জেন্টের সঙ্গে তর্কাতর্কি, নিজ বাইকে আগুন
চোরাই মোটরসাইকেলসহ গ্রেপ্তার ৭
মহাসড়কে বাইক বন্ধের সুপারিশ
বাসচাপায় ইজিবাইকের ৬ যাত্রী নিহতের ঘটনায় চালক গ্রেপ্তার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
At the end of the uncertainty I found release Hridoy Mandal

অনিশ্চয়তা শেষে মুক্তি পেলাম: হৃদয় মণ্ডল

অনিশ্চয়তা শেষে মুক্তি পেলাম: হৃদয় মণ্ডল জামিন পেয়ে কারাগার থেকে বের হওয়ার সময় বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় মণ্ডল। ছবি: নিউজবাংলা
ধর্ম অবমাননার মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার পর শিক্ষক হৃদয় মণ্ডল বলেন, ‘অনেক শিক্ষকই চাইছিলেন আমি এই স্কুল থেকে চলে যাই। স্কুলের শিক্ষকরা তো চাইছিলেন এই সমস্যাটা সৃষ্টি হোক। তবে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সব সময় আমার ভালো সম্পর্ক ছিল, এখনও আছে।’

‘পাঁচ মাস, প্রায় পাঁচ মাসের মতো অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটছিল। ভয়ভীতি নিয়ে দিন কাটছিল। এখনও ভয়ভীতি আছে, ভয়ভীতি যাবে না। তবে এখন আমি মুক্ত।’

ধর্ম অবমাননার মামলা থেকে অব্যাহতির পর কথাগুলো বলেছেন মুন্সীগঞ্জের বিজ্ঞান শিক্ষক হৃদয় চন্দ্র মণ্ডল।

জেলা আমলি আদালত-১-এর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম জশিতা ইসলাম শুনানি শেষে মঙ্গলবার মামলা থেকে হৃদয় মণ্ডলকে অব্যাহতির মৌখিক আদেশ দেন। বুধবার সে আদেশপত্রে স্বাক্ষর করেন বিচারক।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদালত পুলিশের জিআরও মো. জসিমউদ্দিন।

এ খবর শুনে শিক্ষক বলেন, ‘ভয়টা রইল না যে আবার কারাগারে যেতে হবে অথবা আবার মাসে মাসে হাজিরা দিতে হবে। এটার থেকে তো মুক্তি পাইলাম।

‘অনেক শিক্ষকই চাইছিলেন আমি এই স্কুল থেকে চলে যাই। স্কুলের শিক্ষকরা তো চাইছিলেন এই সমস্যাটা সৃষ্টি হোক। তবে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সব সময় আমার ভালো সম্পর্ক ছিল, এখনও আছে।’

হৃদয় মণ্ডলের আইনজীবী শাহীন মোহাম্মদ আমানউল্লাহ বলেন, ‘গতকাল মঙ্গলবার মুন্সীগঞ্জ আমলি আদালত-১-এর বিচারক জশিতা ইসলাম অব্যাহতির আদেশ দেন। তবে মৌখিক ঘোষণার পর আজ আদেশপত্রে স্বাক্ষর করেছেন বিচারক। গত ৮ আগস্ট পুলিশ আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। প্রতিবেদনে হৃদয় চন্দ্র মণ্ডলের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হয়।’


যা ঘটেছিল

মুন্সীগঞ্জ সদরের বিনোদপুর রামকুমার উচ্চ বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন হৃদয় মণ্ডল।

তিনি গত ২০ মার্চ দশম শ্রেণির ক্লাসে বিজ্ঞানের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। ধর্মকে একটি ‘বিশ্বাস’ এবং বিজ্ঞানকে ‘প্রমাণভিত্তিক জ্ঞান’ হিসেবে ব্যাখ্যা করেন। গোপনে তার অডিও ধারণ করে এক শিক্ষার্থী।

ক্লাস শেষে শিক্ষার্থীরা প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন আহমেদের কাছে ওই শিক্ষকের নামে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ দেয়। প্রধান শিক্ষক কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়ে তিন দিনের মধ্যে শিক্ষক হৃদয় মণ্ডলকে জবাব দিতে বলেন। তবে এর আগেই ২২ মার্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও বহিরাগতরা জোটবদ্ধ হয়ে হৃদয় মণ্ডলের শাস্তির দাবিতে স্কুলে মিছিল বের করে।

বিদ্যালয় চত্বরের পাশের রিকাবীবাজার এলাকাতেও মিছিল হয়। প্রধান শিক্ষক পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ, স্থানীয় প্রশাসন ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের খবর দেন। স্কুলে গিয়ে তারা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে বৈঠক করে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করেন। তবে ভেস্তে যায় সেই আলোচনা। একপর্যায়ে হৃদয় মণ্ডলকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। এরপর রাতেই হৃদয় মণ্ডলের বিরুদ্ধে মামলা করেন স্কুল সহকারী মো. আসাদ।

১৯ দিন কারাভোগের পর ১০ এপ্রিল রোববার জামিনে মুক্ত হন হৃদয় মণ্ডল। তাকে ৫ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন দেন অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোতাহারাত আক্তার ভূঁইয়া।

কী কারণে এই অভিযোগ তোলা হতে পারে- এমন প্রশ্নের উত্তরে সেদিন নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমি বলতে পারছি না কী ঘটছে, স্কুলে অভ্যন্তরীণ রেষারেষি থেকেও হতে পারে, প্রাইভেট পড়ানো নিয়েও হতে পারে।’

নিজের ও পরিবারের সদস্যদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আহ্বানও জানান তিনি। বলেন, যাদের অভিযোগের কারণে তিনি কারাভোগ করেছেন, তাদের ওপর তার কোনো ক্ষোভ নেই।

গত ১১ এপ্রিল সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল হাই তালুকদারকে প্রধান করে এক সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা বোর্ড। তদন্ত শেষে হৃদয় মণ্ডলের বিরুদ্ধে তোলা অভিযোগের প্রমাণ মেলেনি বলে ২০ এপ্রিল প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
হৃদয় মণ্ডলের ঘটনা অনুসন্ধানে স্কুলে তদন্ত কমিটি
নব্বই শতাংশের পাটিগণিত
হৃদয় মণ্ডলের গ্রেপ্তারে ‘আরও কারও হাত’ দেখছেন তথ্যমন্ত্রী
হৃদয় মণ্ডলের বিরুদ্ধে মামলার ধারা নিয়ে বিতর্ক
খোদার কাছে প্রার্থনা ওরা স্বাভাবিক মানুষ হোক: হৃদয় মণ্ডল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Day noon shooting and jewelery robbery

দিনদুপুরে গুলি চালিয়ে জুয়েলারি লুট

দিনদুপুরে গুলি চালিয়ে জুয়েলারি লুট প্রতীকী ছবি
জুয়েলারি ব্যবসায়ী মো. মোক্তার হোসেন জানান, বেলা ২টার দিকে একদল ডাকাত ঢুকে পড়ে আব্দুল্লাহপুর রসুলপুর বাজারের নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটে। সেখানে নিচতলায় থাকা নিউ আল আমিন জুয়েলার্সে চারজন ঢুকে অস্ত্রের মুখে স্বর্ণালংকার লুট করে। দোকানে থাকা নগদ টাকাও তারা নিয়ে নেয়।

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকায় একটি জুয়েলারিতে ডাকাতি হয়েছে। এ সময় স্বপন মণ্ডল নামে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি স্থানীয় নিউ আল আমিন জুয়েলার্সের মালিক।

বুধবার বেলা ২টার দিকে রসুলপুর বাজারে নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটের নিচতলায় এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

গুলিবিদ্ধ স্বপন মণ্ডলকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে (পঙ্গু) ভর্তি করা হয়েছে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ জামান বলেন, ‘একটি স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি। তাৎক্ষণিক কাউকে গ্রেপ্তার সম্ভব হয়নি।’

স্বপনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন পাশের মার্কেটের জুয়েলারি ব্যবসায়ী মো. মোক্তার হোসেন। তিনি নিউজবাংলাকে জানান, বেলা ২টার দিকে একদল ডাকাত ঢুকে পড়ে আব্দুল্লাহপুর রসুলপুর বাজারের নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটে। সেখানে নিচতলায় থাকা নিউ আল আমিন জুয়েলার্সে চারজন ঢুকে অস্ত্রের মুখে স্বর্ণালংকার লুট করে। দোকানে থাকা নগদ টাকাও তারা নিয়ে নেয়। ডাকাত দলের অন্য সদস্যরা বাইরে অবস্থান করছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংবাদ পেয়ে মার্কেটের অন্য ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এলে ডাকাতরা কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়।

স্বর্ণালংকার লুটের সময় দোকান মালিক স্বপন মণ্ডল বাধা দেন বলে জানান মোক্তার। তখন ডাকাতরা তাকে লক্ষ্য করে কয়েকটি গুলি ছোড়ে। একটি গুলি স্বপনের ডান পায়ের হাঁটুতে বিদ্ধ হয়।

স্বপনকে উদ্ধারের পর বিকেল ৪টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

জুয়েলারি দোকানটি থেকে কী পরিমাণ র্স্বণ ও টাকা লুট হয়েছে তা জানাতে পারেননি ব্যবসায়ীরা। অন্য কোনো দোকানে লুট হয়নি, সে ক্ষেত্রে ডাকাতরা টার্গেট করেই স্বপনের দোকানে ঢুকেছে বলে তারা মনে করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যবসায়ীরা জানান, ডাকাত দলের সদস্যরা মুখোশ ব্যবহার করেনি। তাদের হাতে অস্ত্র ছিল, মুখ ছিল খোলা। ডাকাতির সময় বৃষ্টি হচ্ছিল বলে মার্কেটে লোকজনের উপস্থিতি ছিল কম।

৪৬ বছর বয়সী স্বপন মণ্ডল দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বাগুইর গ্রামের মৃত গোপিন চন্দ্রের ছেলে। তিনি নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটের স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘কেরানীগঞ্জ থেকে আনা গুলিবিদ্ধ স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর পঙ্গুতে রেফার্ড করা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে জানানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
দেশি গয়নায় বিশ্ব জয়ের প্রত্যাশা
জুয়েলারি মেলা: ১০ লাখ টাকা জেতার সুযোগ
দেশের প্রথম জুয়েলারি এক্সপো শুরু ১৭ মার্চ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Tipu Preeti murder 5 people including Molla Shamim remanded for 3 days

টিপু-প্রীতি হত্যা: মোল্লা শামীমসহ ৫ জন ৩ দিনের রিমান্ডে

টিপু-প্রীতি হত্যা: মোল্লা শামীমসহ ৫ জন ৩ দিনের রিমান্ডে
হত্যায় ব্যবহার করা মোটরসাইকেলচালক শামীম হোসাইন ওরফে মোল্লা শামীমসহ ওই পাঁচজনকে অস্ত্র আইনের মামলায় রিমান্ডে পাঠানো হয়েছে।

রাজধানীর শাহজাহানপুরে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়া আফরান প্রীতি হত্যা মামলায় পাঁচজনের তিন দিন করে রিমান্ডের আদেশ দিয়েছে আদালত।

হত্যায় ব্যবহার করা মোটরসাইকেলচালক শামীম হোসাইন ওরফে মোল্লা শামীমসহ ওই পাঁচজনকে অস্ত্র আইনের মামলায় রিমান্ডে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার আসামিদের আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর খিলগাঁও থানায় করা অস্ত্র আইনের মামলার তদন্তের জন্য তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মজিবুর রহমান তাদের সাত দিন করে রিমান্ড আবেদন করেন।

শুনানি শেষে তাদের প্রত্যেকের তিন দিন করে রিমান্ড আদেশ দেন ঢাকা মহানগর হাকিম মঈনুল ইসলাম।

রিমান্ডে পাঠানো অন্য আসামিরা হলেন- তৌফিক হাসান ওরফে বাবু, সুমন হোসেন, এহতেশাম উদ্দিন চৌধুরী অপু ও শরিফুল ইসলাম হৃদয়।

বেনাপোল সীমান্ত হয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় গত সোমবার মোল্লা শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার দেয়া তথ্যে দক্ষিণ গোড়ান থেকে শরিফুল ইসলাম ওরফে হৃদয়কে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি বিদেশি পিস্তল, ৮ রাউন্ড গুলি ও ৩টি ম্যাগজিনসহ আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তৌফিক হাসান ওরফে বাবুর তথ্যে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি দক্ষিণ গোড়ান থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় রাজধানীর খিলগাঁও থানায় অস্ত্র আইনে একটি মামলা করেন ডিবি পুলিশের পরিদর্শক ইয়াসিন শিকদার।

গত ২৪ মার্চ রাত পৌনে ১০টার দিকে মতিঝিল এজিবি কলোনির কাঁচা বাজারসংলগ্ন রেস্টুরেন্ট থেকে বাসায় ফেরার পথে শাহজাহানপুর আমতলা ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের সামনে দুর্বৃত্তদের এলোপাতাড়ি গুলিতে নিহত হন মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু। সে সময় রিকশায় থাকা কলেজছাত্রী প্রীতিও গুলিতে নিহত হন। আহত হন টিপুর গাড়িচালক মুন্না।

এ ঘটনায় টিপুর স্ত্রী ফারজানা ইসলাম ডলি মামলা করেন। মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করা হয়।

এখন পর্যন্ত মামলাটিতে ২৭ জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

২০১৩ সালের ২৯ জুলাই রাজধানীর গুলশানে শপার্স ওয়ার্ল্ড নামে একটি বিপণিবিতানের সামনে খুন হন যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক রিয়াজুল হক খান মিল্কী। আলোচিত সেই হত্যা মামলার অন্যতম আসামি ছিলেন তৎকালীন মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম টিপু।

আরও পড়ুন:
বাড়িতে হামলা: ইউপি সদস্যসহ গ্রেপ্তার ৮
শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার কৃষক
ফেসবুকে পিস্তলের ছবি দিয়ে গ্রেপ্তার যুবক
হামলায় আহত বৃদ্ধের মৃত্যু, গ্রেপ্তার ৪
পুলিশের ওপর হামলার মামলা: কারাগারে বিএনপি নেতা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Having lost the rickshaw himself he is the head of the thief gang

রিকশা হারিয়ে গড়ে তোলেন চোর চক্র

রিকশা হারিয়ে গড়ে তোলেন চোর চক্র র‍্যাবের হাতে আটক রিকশা চোর চক্রের প্রধান কমল ও তার তিন সহযোগী। ছবি: নিউজবাংলা
কমল ও তার সহযোগীরা রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যাটারিচালিত রিকশা চুরির পর রং পরিবর্তন করে সেগুলো বাজারে বিক্রি করতেন। চক্রটি ৭ বছরে পাঁচ শতাধিক ব্যাটারি চালিত রিকশা চুরি ও ছিনতাই করেছে। অবশেষে র‍্যাবের হাতে ধরা পড়েছে চক্রের প্রধানসহ চারজন।

কামাল হোসেন কমলের বাড়ি পটুয়াখালীতে। ১৫ বছর আগে ঢাকায় এসে তিনি রিকশা চালানো শুরু করেন। ভাড়ায় চালানো সেই রিকশাটি একদিন চুরি হয়ে যায়। ধারদেনা করে মালিককে সেই রিকশার দাম পরিশোধ করেন কমল।

জীবন-যুদ্ধ শুরুর দিকের এই ঘটনা পুরোপুরি পাল্টে দেয় এই যুবককে। নিয়ে যায় অন্ধকার জগতে। চুরি হয়ে যাওয়া রিকশার খোঁজ করতে গিয়ে তিনি সন্ধান পান চোর চক্রের। একপর্যায়ে নিজেও জড়িয়ে পড়েন এই চক্রে। নিজেই গড়ে তোলেন রিকশা চোর চক্র।

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যাটারিচালিত রিকশা চুরির পর সবুজবাগ-মুগদা এলাকায় বিভিন্ন গ্যারেজে সেগুলো রাখতেন কমল। পরে রং পরিবর্তন করে সেগুলো বাজারে বিক্রি করতেন। চক্রটি ৭ বছরে পাঁচ শতাধিক ব্যাটারিচালিত রিকশা চুরি ও ছিনতাই করেছে। সর্বস্বান্ত করেছে গরিব রিকশাচালক ও মালিকদের।

কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। বুধবার ভোরে কমলসহ এই চোর চক্রের চার সদস্য ধরা পড়েছেন র‍্যাবের হাতে। অন্য তিনজন হলেন- সাজু, ফজলু ও শাহিন সরদার। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২৩টি ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ১৮টি রিকশার চার্জার ব্যাটারি, চারটি মোবাইল ফোন, চারটি মাস্টার চাবি ও নগদ ১৬০০ টাকা উদ্ধার করা হয়।

রিকশা হারিয়ে গড়ে তোলেন চোর চক্র
রিকশা চোর চক্রের প্রধানসহ চারজনকে আটকের পর উদ্ধার হওয়া ব্যাটারিচালিত রিকশা। ছবি: নিউজবাংলা

কারওয়ানবাজারে র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান র‍্যাব-৩-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ। সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানান।

তিনি জানান, কমল এই চক্রের হোতা। তিনি ১২ বছর ধরে রিকশা চুরি, ছিনতাই ও ডাকাতির সঙ্গে জড়িত। প্রথমে তিনি একাই রিকশা চুরি করতেন। যাত্রী হিসেবে রিকশায় উঠে পথে চালককে নেশাযুক্ত কোমল পানীয় খাইয়ে অজ্ঞান করে তিনি রিকশা নিয়ে পালিয়ে যেতেন। আবার কখনও রিকশাচালক কোমল পানীয় খেতে রাজি না হলে তার নাকের কাছে চেতনানাশক ভেজানো রুমালের ঘ্রাণ দিয়ে অজ্ঞান করে রিকশা চুরি করতেন।

লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, একা একা রিকশা চুরিতে হাত পাকিয়ে কমল ধীরে ধীরে একটি চক্র গড়ে তোলেন। চক্রটি অভিনব কায়দায় রিকশা চুরি করত। তারা রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় রিকশা নিয়ে ঘুরে বেড়াত। সাজু ওই রিকশা চালিয়ে যেতেন। পথে নতুন কোনো রিকশা দেখলে সেটিকে টার্গেট করা হতো।

কমল টার্গেট করা রিকশার চালককে বলতেন- সামনের রাস্তায় একটি বাসা থেকে আমার কিছু মাল তুলব। ওই মালগুলো কাছাকাছি আরেকটি বাসায় পৌঁছে দিলে কয়েক গুণ বেশি ভাড়া দেয়া হবে। এরপর ওই রিকশার চালকের মোবাইল ফোন নম্বর সংগ্রহ করতেন। বেশি ভাড়ার রিকশাচালকও প্রস্তাবে রাজি হয়ে যেতেন। পরে সুবিধামতো একটি বাসার সামনে রিকশা থামিয়ে কমল চালককে বলতেন, বাসার ভেতরে ঢুকে মালামাল নিয়ে আসতে হবে। চালক সে অনুযায়ী বাসায় প্রবেশ করা মাত্র চক্রের অপর সদস্য ফজলু রিকশা নিয়ে পালিয়ে যেতেন। এই পর্যায়ে রিকশা হারিয়ে চালক কান্না শুরু করলে রিকশা খোঁজার নাম করে কমলও সটকে পড়তেন।

চক্রটি এভাবে চুরি করা রিকশাগুলো রাজধানীর সবুজবাগ ও মুগদা এলাকায় শাহীন, আকবর, মনির ও বাবলুর গ্যারেজে নিয়ে লুকিয়ে রাখত। তারপর রিকশার মালিককে ফোন করে ‘মুক্তিপণ’ দাবি করত। তারা সেই টাকা বিকাশের মাধ্যমে আদায় করত। এরপর একটি অজ্ঞাত স্থানে রিকশা রেখে মালিককে ফোন করে রিকশা নিয়ে যেতে বলত।

রিকশা হারিয়ে গড়ে তোলেন চোর চক্র
রিকশা চুরির পর আলাদাভাবে বিক্রির জন্য রাখা চার্জারও উদ্ধার করে র‍্যাব। ছবি: নিউজবাংলা

কৌশল পরিবর্তন

র‍্যাব জানায়, সহযোগীসহ কমল একাধিকবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ধরা পড়ার পর চুরির এই কৌশল ফাঁস হয়ে যায়। এরপর জামিনে বেরিয়ে এসে চক্রটি চুরির কৌশল পাল্টে ফেলে। এই পর্যায়ে কমল ও তার সহযোগীরা যাত্রী হিসেবে রিকশায় উঠে নির্জন স্থানে নিয়ে চালককে মারধর করে হাত-পা বেঁধে রাস্তায় ফেলে রেখে রিকশা নিয়ে পালিয়ে যেতেন। পরে রং পরিবর্তন করে খোলাবাজারে সেটি নতুন হিসেবে বিক্রি করে দিতেন। কখনও রিকশার মোটর পার্টস খুলে আলাদাভাবে বিক্রি করতেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, রিকশা চুরি চক্রের মূল পরিকল্পনাকারী কমল। চক্রটি রিকশা চুরির জন্য মূলত বাসাবো বাসস্ট্যান্ড ও মান্ডা এলাকাকে বেছে নিত। আর চুরির পর রিকশাটি চালিয়ে নিয়ে নিরাপদ স্থানে পৌঁছে দিতেন তার সহযোগী সাজু। আরেক সহযোগী ফজলুর সহায়তায় রং ও সিট কভার পরিবর্তন করে রিকশাগুলো ৫ হাজার থেকে ১২ টাকা দামে বিক্রি করা হতো।

র‍্যাব জানিয়েছে, কমলের বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ৭টি চুরির মামলা এবং ফজলুর নামে একটি মাদক মামলা রয়েছে। শাহিন মান্ডা খালপাড় এলাকায় ৩০ বছর ধরে রিকশার একটি গ্যারেজ পরিচালনা করে আসছেন। ৭ বছর আগে এই চোর চক্রের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তিনি চোর চক্রকে তার গ্যারেজ ব্যবহার করে চোরাই রিকশা রাখা ও বিক্রিতে সহায়তা করতেন। আর রিকশা বিক্রির টাকা থেকে তিনি ১০ শতাংশ কমিশন পেতেন।

আরও পড়ুন:
ঋণের টাকায় বাবার কেনা ভ্যান হারিয়ে কান্নায় ভাসছে দীপ্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chittagong naval base mosque bomb 5 militants sentenced to death

চট্টগ্রামে নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা: ৫ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড

চট্টগ্রামে নৌ ঘাঁটির মসজিদে বোমা: ৫ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড চট্টগ্রাম আদালত। ছবি: নিউজবাংলা
মনোরঞ্জন বলেন, ‘মামলার এক বছর পর ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর আদালতে পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় তদন্ত কর্মকর্তা। বিচার শুরুর পর চলতি বছরের ২৩ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। ২৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে রায় ঘোষণা করেন আদালত।’

চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঈশা খাঁ ঘাঁটির মসজিদে বোমা বিস্ফোরণের মামলায় নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির ৫ সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জেলার সন্ত্রাসবিরোধী ট্রাইব্যুনালের বিচারক আবদুল হালিম বুধবার সকালে এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) মনোরঞ্জন দাশ নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

দণ্ডিতরা হলেন নৌবাহিনীর সাবেক সদস্য এম সাখাওয়াত হোসেন, বলকিপার আবদুল মান্নান, তার ভাই আবদুল গাফফার, বলকিপার রমজান আলী এবং বাবুল রহমান ওরফে রনি।

পিপি জানান, ২০১৫ সালের ১৮ ডিসেম্বর চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর ঈশা খাঁ ঘাঁটি এলাকায় অবস্থিত দুটি মসজিদে জুমার নামাজের পর বোমা হামলার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ২০১৬ সালের ৩ সেপ্টেম্বর নেভাল প্রভোস্ট মার্শাল কমান্ডার এম আবু সাঈদ নগরীর ইপিজেড থানায় মামলা করেন।

সন্ত্রাসবিরোধী ও বিস্ফোরক আইনে করা এই মামলায় আসামি করা হয় ৪ জনকে। পরে পুলিশের তদন্তে আসামি আবদুল মান্নানের বড় ভাই জেএমবি সদস্য আবদুল গাফফারের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়।

মনোরঞ্জন বলেন, ‘মামলার এক বছর পর ২০১৭ সালের ১৫ অক্টোবর আদালতে পাঁচজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয় তদন্ত কর্মকর্তা। বিচার শুরুর পর চলতি বছরের ২৩ মার্চ সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হয়। ২৪ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৭ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার রায় ঘোষণা করেন আদালত।’

আসামিদের মধ্যে এম সাখাওয়াত হোসেন পলাতক। বাকিরা রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন বলেও জানান পিপি।

আরও পড়ুন:
শিশু ধর্ষণ ও হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
কন্যাকে পায়ে পিষে হত্যা, বাবার মৃত্যুদণ্ড
ব‍্যবসায়ী হত‍্যা মামলায় ২ জনের মৃত‍্যুদণ্ড
স্ত্রী হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড
ক্ষমা বিশ্বাস হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

মন্তব্য

p
উপরে