× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Demand for construction of 20 storey building for lawyers
hear-news
player
print-icon

আইনজীবীদের জন্য ২০ তলা ভবন নির্মাণের জায়গা পরিদর্শনে আইনমন্ত্রী

আইনজীবীদের-জন্য-২০-তলা-ভবন-নির্মাণের-জায়গা-পরিদর্শনে-আইনমন্ত্রী
আইনজীবীদের জন্য ২০ তলা বহুতল ভবন নির্মাণের জায়গা পরিদর্শন করেন প্রধান বিচারপতি ও আইনমন্ত্রী। ছবি: নিউজবাংলা
চাহিদাপত্রে বলা হয়, সমিতির এনেক্স এবং এনেক্স এক্সটেনশন ভবন ভাঙা হবে। ওই জায়গাসহ পেছনের খালি জায়গায় প্রস্তাবিত বহুতল ভবনের চাহিদাপত্র অনুযায়ী ২০ তলা ভবন নির্মাণে আগ্রহী।

সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সদস্য আইনজীবীদের জন্য ২০ তলা বহুতল ভবন নির্মাণের দাবি করা হয়। তার প্রেক্ষিতে নির্ধারিত জায়গা পরিদর্শন করেছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক।

মঙ্গলবার দুপুরে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির এনেক্স ভবনের পেছনে জায়গাটি পরিদর্শন করেন তারা।

এ সময় আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান, আইনজীবী সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির, সম্পাদক আব্দুন নূর দুলালসহ সমিতির কার‌্য নির্বাহী কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পরিদর্শনকালে সমিতির সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির আইনমন্ত্রী ও প্রধান বিচারপতিকে বলেন, ‘এই জায়গায় একটি ভবন নির্মাণের জন্য পূর্বের নেতারা একটা পরিকল্পনা করেছিল। কিন্তু সেই ভবন হয়নি। ভবন হওয়ার আগে বরাদ্দও করা হয়। সবই হয়েছে হাওয়ার উপরে। বারের সদস্যদের কাছ থেকে ২ লাখ করে টাকাও নিয়েছেন। অথচ ভবনের কোনো খোঁজ খবর নাই।’

এ সময় তিনি বারের ভবন নির্মানের জন্য আইনমন্ত্রীকে উদ্যোগ নিতে অনুরোধ করেন।

সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির নিউজবাংলাকে বলেন,‘ সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবীদের জন্য ২০ তলা ভবন নির্মাণ হবে। সেই জায়গা পরিদর্শনের জন্য প্রধান বিচারপতি, মাননীয় আইনমন্ত্রী ও আপিল বিভাগের বিচারপতি এসেছেন। তারা জায়গাটি দেখেছেন। এখন সরকারের অনুদানের পর্ব। এ বিষয়ে আইনমন্ত্রী সহযোগিতা করবেন সেই আশ্বাসও দিয়েছেন। আশা করছি শিগগির ভবনটি হবে।’

তিনি বলেন, ‘প্রায় তিন বিঘা জায়গার ওপর এই ২০ তলা বিশাল ভবন হবে। এজন্য এখন যে এনেক্সভবন আছে সেটি ভেঙ্গে নতুন ভবনটি নির্মাণ করা হবে। যেখানে মিডিয়ার জন্য জায়গা বরাদ্দ থাকবে বলেও তিনি জানান। জায়গা পরিদর্শন শেষে সমিতির সভাপতি কক্ষে বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী।

সমিতিরি সদস্য অ্যাডভোকেট জেসমিন আক্তার জেসি বলেন,‘ আধুনিক ভবন নির্মাণ হোক, এটা আমাদের সকলের দীর্ঘ দিনের দাবি। এমনিতেই আমাদের জায়গা সংকট। ২০ তলা বহুতল ভবন নির্মাণ হলে আশা করি আমাদের এই স্থান সংকুলান কেটে যাবে। আমার ব্যক্তিগত প্রত্যাশা হলো বর্তমান সভাপতি মোমতাজ উদ্দিন ফকির স্যারের হাত ধরেই নতুন এই ভবন আলোর মুখ দেখুক।’

নতুন এই ২০ তলা ভন নির্মাণে লক্ষ্যে গত ২১ জুন গণপূর্ত বিভাগে চাহিদাপত্র দেয় সুপ্রিমকোর্ট বার। সমিতির সম্পাদক আবদুন নূর দুলাল স্বাক্ষরিত চাহিদাপত্রটি গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী বরাবর প্রেরণ করা হয়।

চাহিদা পত্রে বলা হয়, সমিতির এনেক্স এবং এনেক্স এক্সটেনশন ভবন ভাঙা হবে। ওই জায়গাসহ পেছনের খালি জায়গায় প্রস্তাবিত বহুতল ভবনের চাহিদাপত্র অনুযায়ী (১৬ তলা+৪ তলা বেইজমেন্টসহ) ২০ তলা ভবন নির্মাণে আগ্রহী।

এরমধ্যে বেইজমেন্ট-২, ৩, ৪ শুধু পার্কিংয়ের জন্য ব্যবহার করা হবে। আর বেইজমেন্ট-১ এ পার্কিংয়ের সঙ্গে থাকবে দোকান, কম্পিউটার জোন, সেলুন ও জেনারেটর। গ্রাউন্ডফ্লোরে থাকবে মসজিদ, ৩টি ক্যান্টিন, কনভেনশন সেন্টার, ডে-কেয়ার, ব্রেস্ট ফিডিং রুম, ক্লিনিক, রিসিপশন, ক্লায়েন্ট শেড ও ব্যাংক।

দ্বিতীয় তলায় থাকবে কনভেনশন সেন্টার, লাইব্রেরি, আরবিট্রেশন সেন্টার, কনফারেন্স রুম, হল রুম ও ব্যাংক। তৃতীয় তলায় হল রুম, নারীদের জন্য কমন রুম ও নামাজের ঘর এবং মাইনরিটি কনফারেন্স রুম। চতুর্থ তলায় হল রুম, নারীদের জন্য কমন রুম, অফিস রুম।

পঞ্চম তলা থেকে ১৬ তলা পর্যন্ত আইনজীবীদের বসার স্থান বা কিউবিক্যালস।

টপ ফ্লোরে ২টি সুইমিংপুল, ২টি জাকুজি, ফুড কোর্ট, ল'ইয়ার্স ফিটনেস ক্লাব (পুরুষ ও নারী), খেলার রুম (নারী ও পুরুষ) আর বার-বি-কিউ রেস্টুরেন্ট।

এসব চাহিদার বাহিরেও একটি যুগোপযোগী ও অত্যাধুনিক ভবনের জন্য যেসব সুযোগ-সুবিধা প্রয়োজন যেমন- ৫ হাজার কেভিএ সম্পন্ন বিদ্যুৎ সাব-স্টেশন, প্রশস্ত সিঁড়ি, পর্যাপ্ত কার্গো লিফট, ফায়ার এক্সিট, সেন্ট্রাল সাউন্ড সিস্টেম, আলো-বাতাস নির্গমনের জন্য পর্যাপ্ত ভয়েড রাখতে হবে।

এছাড়া নারী ও পুরুষ আইনজীবী এবং পাবলিকের জন্য পর্যাপ্ত ও অত্যাধুনিক টয়লেট , উন্নত বিদ্যুৎ ব্যবস্থাপনা, গ্যাংওয়ে, পর্যাপ্ত উচ্চতা, ফায়ার এলার্ম সিস্টেম, ডিজিটাল ডিসপেস্ন বোর্ড, স্টোর রুম, ক্লিনিং মেটেরিয়ালস রুম, পর্যাপ্ত স্পেস সংবলিত করিডোর, সিসিটিভি ক্যামেরা সেটআপ, ওয়াইফাই জোন নেটওয়ার্কিং ইত্যাদিসহ অন্যান্য অত্যাধুনিক সুযোগ-সুবিধা প্রস্তাবিত নতুন ভবনে রাখা প্রয়োজন বলে চাহিদাপত্রে উল্লেখ করা হয়।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Bachelet was told about the smear campaign by prominent people

ব্যাচেলেটকে অপপ্রচার সম্পর্কে জানালেন বিশিষ্টজনেরা

ব্যাচেলেটকে অপপ্রচার সম্পর্কে জানালেন বিশিষ্টজনেরা মিশেল ব্যাচেলেটের সম্মানে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে আয়োজিত টাউন হল মিটিং ও নৈশভোজে অংশ নেন কূটনীতিক, রাজনীতিক ও বিশিষ্টজনেরা। ছবি: নিউজবাংলা
জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেটের সম্মানে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে টাউন হল মিটিং ও নৈশভোজের আয়োজন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এই আয়োজনে মন্ত্রী, রাজনীতিক, কূটনীতিকসহ বিশিষ্টজনেরা ব্যাচেলেটের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

বাংলাদেশ সফররত জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেটকে বাংলাদেশের মানবধিকার নিয়ে অপপ্রচার সম্পর্কে অবহিত করেছেন সরকার ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিসহ বিশিষ্টজনেরা।

মিশেল ব্যাচেলেটের সম্মানে মঙ্গলবার রাতে ঢাকায় ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে টাউন হল মিটিং ও নৈশভোজের আয়োজন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। এই আয়োজনে মন্ত্রী, রাজনীতিক, কূটনীতিকসহ বিশিষ্টজনেরা ব্যাচেলেটের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড۔ সেলিম মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে সরকারবিরোধী কিছু চিহ্নিত ব্যক্তির তথ্যের ওপর ভিত্তি করে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কিছু মানবাধিকার সংগঠন রিপোর্ট প্রকাশ করছে।’

পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঞ্চালনায় মতবিনিময় পর্বে ঢাকায় ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী বলেন, ‘গত এক দশকে বাংলাদেশ নানা ক্ষেত্রে অভূতপূর্ব সাফল্য দেখিয়ে উন্নয়নশীল বিশ্বে একটা মর্যাদার স্থানে পৌঁছেছে। বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি সার্বিকভাবে মূল্যায়ন করতে হবে। দক্ষিণ এশিয়ায় ভারত ও বাংলাদেশ মোটামুটি একইরকম পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।’

নৈশভোজ পর্বে বাংলাদেশের মানবাধিকার নিয়ে নানা অপপ্রচার সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে সরকারবিরোধী কিছু চিহ্নিত ব্যক্তির তথ্যের ওপর ভিত্তি করে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কিছু মানবাধিকার সংগঠন রিপোর্ট প্রকাশ করছে।’

ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনে জামিন দেয়া না দেয়া, বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেপ্তার, সাংবাদিকদের এই আইনের বাইরে রাখা, এই আইনে প্রকৃত সাংবাদিকরা গ্রেপ্তার হচ্ছেন কিনা- এসব বিষয়ের সাংবিধানিক ও আইনি ব্যাখ্যা দেন তিনি।

সেলিম মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশে প্রচলিত বেশ কয়েকটি আইনে যৌক্তিক কারণেই বিনা ওয়ারেন্টে গ্রেপ্তারের বিধান রয়েছে। অনেক আইনেই কিছু কিছু ক্ষেত্রে নিম্ন আদালতে জামিন না দেয়ার বিধান রয়েছে। তবে উচ্চ আদালত জামিন দিয়ে থাকে। সাংবাদিকসহ কোনো কমিউনিটিকে নির্দিষ্ট কোনো ফৌজদারি আইনের আওতার বাইরে রাখা সাংবিধানিক মৌলিক অধিকারের পরিপন্থী।

‘ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের বিষয়গুলো আন্তর্জাতিক মানবাধিকারের সনদ, আমাদের সংবিধানের মৌলিক অধিকারের বিধানাবলী এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।’

তিনি জানান, ‘যে মামলাগুলো ডিজিটাল সিকিউরিটি আইনের আওতায় বলে প্রচার করা হচ্ছে, এর প্রায় ৮০ ভাগই বিএনপির আমলে প্রণীত আইসিটি আইনের ৫৭ ধারার অধীনে দায়ের হয়েছে। শেখ হাসিনার সরকার এই ৫৭ ধারা বাতিল করেছে।

‘সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে যে মামলার কথা বলা হচ্ছে, তার প্রায় ৯০ শতাংশই অনলাইনভিত্তিক কিছু ভুঁইফোড় বেআইনি নিউজ পোর্টালের সঙ্গে যুক্তদের বিরুদ্ধে। যারা মূলত নানা শ্রেণী পেশার মানুষকে ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে হয়রানি করে থাকে।’

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে গুম বা ফোর্সড ডিসএপিয়ারেন্স সম্পর্কে যে অপপ্রচার চলছে, সেই বিষয়টি ড۔ সেলিম মাহমুদ জাতিসংঘ হাইকমিশনারের দৃষ্টিতে আনেন। তিনি বলেন, ‘মানবাধিকার রিপোর্টগুলোতে বলা হয়, অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিরোধী দলের নেতা-কর্মী ও সমর্থকরা ফোর্সড ডিসএপিয়ারেন্সের মূল ভিক্টিম। কিন্তু সেই রিপোর্টে ভিক্টিমের যে সংখ্যা দেয়া হয়, তাতে বুঝা যায় এই বক্তব্য স্ববিরোধী ও বাস্তবতাবর্জিত।

‘তাদের বক্তব্য অনুযায়ী ভিকটিম রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী সমর্থক হয়ে থাকলে এই সংখ্যা অনেক বেশি হওয়ার কথা। পক্ষান্তরে ভিক্টিমদের যে তালিকা দেয়া হয়, সেখানে কোনো রাজনৈতিক দলের সদস্য কিংবা সমর্থক থাকে না। ঐতিহাসিকভাবে বাংলাদেশে নানা কারণে কিছু ব্যক্তি প্রতিবছর নিখোঁজ হয়ে যায়। দেশের মোট জনসংখ্যার আকার বিবেচনা করলে নিখোঁজ হওয়া এই মানুষের সংখ্যাও কম হওয়ার কথা নয়। মূলত এই হারিয়ে যাওয়া লোকগুলোকেই এই তালিকায় আনা হয়ে থাকে।’

জাতিসংঘের হাইকমিশনের সঙ্গে নৈশভোজ আলোচনায় অংশ নেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকী, প্রধানমন্ত্রীর সাবেক প্রেস উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী প্রমুখ।

মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন ঢাকায় যুক্তরাজ্যের হাইকমিশনার রবার্ট ডিকসন, সাবেক রাষ্ট্রদূত সমসের মবিন চৌধুরী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সাদেকা হালিম, নারী নেত্রী আরোমা দত্ত, রোকেয়া কবির, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের মফিদুল হক, অ্যাম্বাসেডর আব্দুল হান্নান, অ্যাম্বাসেডর শামীম আহসান, শিফা হাফিজা, প্রফেসর সাহাব আনাম খান প্রমুখ।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস, মালয়েশিয়ার হাইকমিশনার, ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
অস্বীকার না করে আমলে নিন: সরকারকে ব্যাচেলেট
সামরিক শাসনামলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
জাতিসংঘ মানবাধিকার প্রধান আসছেন রোববার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The President asked the Supreme Court to reduce the number of cases due to the touch of information technology

তথ্যপ্রযুক্তির ছোঁয়ায় মামলাজট কমান, সুপ্রিম কোর্টকে রাষ্ট্রপতি

তথ্যপ্রযুক্তির ছোঁয়ায় মামলাজট কমান, সুপ্রিম কোর্টকে রাষ্ট্রপতি রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে সুপ্রিম কোর্টের বার্ষিক প্রতিবেদন জমা দিয়েছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। ছবি: বঙ্গভবন
রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ বলেন, ‘ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বাধীনতার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে নিরলস প্রয়াস চালিয়ে যাবে বিচার বিভাগ।’

তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে মামলাজট কমানো ও বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি কমিয়ে কীভাবে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করা যায়, সে বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে সুপ্রিম কোর্টের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বে বিচারপতিদের একটি প্রতিনিধি দল বুধবার বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করে।

এ সময় রাষ্ট্রপ্রধানের কাছে ‘সুপ্রিম কোর্টের বার্ষিক প্রতিবেদন ২০২১’ তুলে দেন প্রধান বিচারপতি।

সে সময় রাষ্ট্রপতি আশা প্রকাশ করে বলেন, ‘ন্যায়বিচার নিশ্চিত করার মাধ্যমে স্বাধীনতার সুফল জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে নিরলস প্রয়াস চালিয়ে যাবে বিচার বিভাগ।’

সাক্ষাতে বার্ষিক প্রতিবেদনের বিভিন্ন দিক ও বিচার বিভাগের সার্বিক কার্যক্রম সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন প্রধান বিচারপতি।

এ ছাড়া প্রধান বিচারপতি জানান, এ বছর দেশের সংবিধান ও বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের ৫০ বছর পূর্তি উৎসব আদালত প্রাঙ্গণে সাড়ম্বরে উদযাপন করা হবে।

সুপ্রিম কোর্টের কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করেন রাষ্ট্রপতি হামিদ। সাক্ষাৎকালে রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিবরাও উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সৌদির সঙ্গে বাণিজ্যের যথেষ্ট সুযোগ আছে: রাষ্ট্রপতি
বঙ্গভবনের পুকুরে মাছের পোনা ছাড়লেন রাষ্ট্রপতি
আঞ্চলিক সমৃদ্ধি অর্জনে মুর্মুর সঙ্গে কাজ করতে চান হামিদ
জীবন-জীবিকা নিয়ে নতুন করে ভাবাচ্ছে করোনা: রাষ্ট্রপতি
ভারতের রাষ্ট্রপতি নির্বাচন: এগিয়ে দ্রৌপদী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Take into account without denying Bachelet to the government

অস্বীকার না করে আমলে নিন: সরকারকে ব্যাচেলেট

অস্বীকার না করে আমলে নিন: সরকারকে ব্যাচেলেট রাজধানীতে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচলেটের সংবাদ সম্মেলন। ছবি: নিউজবাংলা
‘সরকারের বিভিন্ন বডির সঙ্গে আলোচনায় আমি এই আহ্বান জানিয়েছি যে, অভিযোগ অস্বীকার না করে আমলে নিন। স্বাধীন ও নিরপেক্ষ মেকানিজমের মাধ্যমে তদন্ত করুন। তদন্তে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হলে বাদ, তবে সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নিন।’

বিচারবহির্ভূত হত্যার বিষয়ে আসা অভিযোগগুলো অস্বীকার না করে সরকারকে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত করার আহ্বান জানিয়েছেন জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট।

ঢাকা সফরে এসে বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে বৈঠক শেষে বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ব্যাচেলেটের এই সফরকে ঘিরে বাংলাদেশে মানবাধিকার সংগঠন, মানবাধিকার কর্মী, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নানামুখি তৎপরতা ছিল।

ব্যাচেলেট সফরে এসে সরকারের পাশাপাশি কথা বলেছেন বিএনপি, বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, মানবাধিকার কর্মীদের সঙ্গে যারা দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে নানা অভিযোগ করে আসছেন।

ব্যাচেলেট বলেন, ‘সরকারের বিভিন্ন বডির সঙ্গে আলোচনায় আমি এই আহ্বান জানিয়েছি যে, অভিযোগ অস্বীকার না করে আমলে নিন। স্বাধীন ও নিরপেক্ষ মেকানিজমের মাধ্যমে তদন্ত করুন। তদন্তে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হলে বাদ, তবে সত্যতা পেলে ব্যবস্থা নিন।’

বিশ্বের সব দেশকেই এ ধরনের অভিযোগের ক্ষেত্রে একই পরামর্শ দেয়ার কথাও জানান জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কমিশনার।

ঢাকা সফর নিয়ে তিনি বলেন, ‘দেশের অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক সমস্যা ও আগামী বছর হতে যাওয়া জাতীয় নির্বাচন সম্পর্কেও আমরা সরকারকে সব স্টেকহোল্ডার, রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজের সঙ্গে বসে, সংলাপের মাধ্যমে সমাধানের পরামর্শ দিয়েছি।’

এই সফরের আমন্ত্রণ জানানোয় বাংলাদেশ সরকারকে ‘উষ্ণ ধন্যবাদও’ জানান ব্যাচেলেট। বলেন, ‘আমি আশা করি আমার এই সফর জাতিসংঘের মানবাধিকার ব্যবস্থার সঙ্গে সরকারের সম্পৃক্ততাকে গড়ে তুলবে এবং আমাদের সঙ্গে সহযোগিতাকে আরও গভীর করতে সাহায্য করবে, বাংলাদেশে মানবাধিকারের প্রচার ও সুরক্ষাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসাও করেন জাতিসংঘ কমিশনার। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ও সামাজিক অগ্রগতি অর্জন করেছে এবং কয়েক বছরের মধ্যে স্বল্পোন্নত দেশের (এলডিসি) অবস্থা থেকে উন্নীত হওয়ার পথে রয়েছে। বাংলাদেশ আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, দারিদ্র্য বিমোচন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যে উন্নতি, নারী ও শিশুদের মৃত্যুহার, খাদ্য, পানি এবং স্যানিটেশনে প্রবেশের ক্ষেত্রে অগ্রগতি অর্জন করেছে।’

বিচারবহির্ভুত হত্যা ও গুম নিয়ে গভীর উদ্বেগ

ব্যাচলেটের এই সফর নিয়ে সবচেয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে এই দুটি বিষয় নিয়ে।

তিনি বলেন, ‘জাতিসংঘের বিভিন্ন মানবাধিকার ব্যবস্থা - জাতিসংঘের কমিটি অ্যাগেইনস্ট টর্চারসহ, বেশ কয়েক বছর ধরে জোরপূর্বক গুম, বিচারবহির্ভূত হত্যা, নির্যাতনের অভিযোগ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে। যার অনেকগুরোর জন্য র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নকে দায়ী করা হয়েছে এবং এক্ষেত্রে জবাবদিহিতার অভাব রয়েছে।

‘আমি সরকারের মন্ত্রীদের কাছে এই গুরুতর অভিযোগ সম্পর্কে আমার গভীর উদ্বেগ উত্থাপন করেছি এবং নিরাপত্তা খাত সংস্কারের সঙ্গে এই অভিযোগগুলোর একটি নিরপেক্ষ, স্বাধীন ও স্বচ্ছ তদন্তের প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছি।’

তিনি বলেন, ‘সকল প্রকার বিচারবহির্ভুত হত্যা ও গুমের ঘটনার ক্রমাগত অভিযোগ নিশ্চয়ই উদ্বেগের। বিশেষ করে এ ধরনের অভিযোগের যথযথ তদন্তের অগ্রগতির অভাব দেখা যায়। এইসব অভিযোগ ন্যায়বিচারের অন্যতম বাধা ও দীর্ঘস্থায়ী হতাশার কারণ। আমি সরকারকে একটি ম্যাকানিজম তৈরি করতে উত্সাহিত করেছি। যা গুম ও বিচারবহির্ভূত হত্যার অভিযোগ তদন্ত করতে ভিকটিম, পরিবার এবং সুশীল সমাজের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে।’

জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনার বলেন, ‘আমার অফিস আন্তর্জাতিক মানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে কীভাবে এই জাতীয় সংস্থার নকশা করা যেতে পারে সে সম্পর্কে পরামর্শ দেয়ার জন্য প্রস্তুত। এনফোর্সড ডিসপিয়ারেন্স বিষয়ক জাতিসংঘের ওয়ার্কিং গ্রুপকে বাংলাদেশ সফরে আমন্ত্রণ জানানোও এই সমস্যাটির নিষ্পত্তিমূলক সমাধানের প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করবে। জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে নিয়োগের ক্ষেত্রে বাংলাদেশি ইউনিফর্ম পরা কর্মীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে মানবাধিকার স্ক্রিনিং নিশ্চিত করার জন্য একটি শক্তিশালী ব্যবস্থা ও নিশ্চিত করা যায়।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংস্কারের প্রস্তাব ও মৃত্যুদণ্ডে বিরোধিতা

ব্যাচেলেট জানান, তিনি সরকারকে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংস্কারের প্রস্তাব করেছেন। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ দেশীয় আইন করতে বলেছেন।

তিনি বলেন, ‘আমার কার্যালয় এবং সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের পুনর্বিবেচনার বিষয়ে আলোচনা করছে। আমি অনলাইন স্পেস নিয়ন্ত্রণ করার প্রয়োজনীয়তার কথা স্বীকার করেছি। এর মাধ্যমে অনলাইন ঘৃণাত্মক বক্তৃতা, বিভ্রান্তি এবং সাইবার অপরাধের বিরুদ্ধে লড়াই করা। এই উদ্বেগগুলিকে মোকাবেলা করা সহজ নয়, কারণ যোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ করা সব সময় মত প্রকাশের স্বাধীনতার সুরক্ষার জন্য ঝুঁকি তৈরি করে।’

জাতিসংঘ দৃঢ়ভাবে যে কোনো এবং সব পরিস্থিতিতে মৃত্যুদণ্ড আরোপের বিরুদ্ধে বলেও জানান তিনি। বলেন, ‘আমি এর সুযোগ কমাতে এবং স্থগিতের দিকে এগিয়ে যাওয়ার পদক্ষেপ নিতে সরকারকে উত্সাহিত করেছি।’

‘মত প্রকাশের স্বাধীনতা চায় জাতিসংঘ’

জাতিসংঘ বাংলাদেশের সকল মানুষের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা চায় বলে জানান ব্যাচলেট।

তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক ও মানবাধিকারকর্মী, বিরোধী দল এবং সাংবাদিকদের শান্তিপূর্ণ সমাবেশসহ সকল নাগরিকের মতপ্রকাশের স্বাধীনতা জরুরি। রাজনৈতিক সহনশীলতা ও সহঅবস্থান আগামী নির্বাচনের সময় একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হবে।

‘এটি নিশ্চিত করাও গুরুত্বপূর্ণ যে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো যাতে অতিরিক্ত শক্তি প্রয়োগ না করে প্রতিবাদ সমাবেশ সামলাতে পারে, তাদের সে ধরনের প্রশিক্ষণ সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে।’

তিনি বলেন, সামাজিক স্থীরতা নিশ্চিত করতে রাজনৈতিক দল এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের মধ্যে আরও সংলাপের জন্য জায়গা থাকা দরকার। নারী, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের এবং বিশেষ করে তরুণদের কণ্ঠস্বর শোনা দরকার।

‘বাংলাদেশের সংবিধান জাতিসংঘের মূল মানবাধিকার চুক্তির পক্ষে’

ব্যাচেলেট বলেন, মানবাধিকার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশের সংবিধান, আইন এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গীকারে একটি দৃঢ় কাঠামো রয়েছে। এটি জাতিসঙ্ঘের সমস্ত মূল মানবাধিকার চুক্তির পক্ষে। এটা আন্তর্জাতিক কনভেনশন ফর দ্য প্রোটেকশন অফ অল পার্সন ফ্রম ফোর্সড ডিসপিয়ারেন্স এর অংশ। যা আমি সরকারকে অনুমোদন করার জন্য আহ্বান জানিয়েছি।

‘জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলের সার্বজনীন পর্যায়ক্রমিক পর্যালোচনা প্রক্রিয়া এবং জাতিসংঘের বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থার স্বাধীন বিশেষজ্ঞরা এই সুপারিশগুলি তৈরি করেছেন। আমি সরকারের কাছে এর বাস্তবায়ন এবং অনুসরণের জন্য একটি প্রাতিষ্ঠানিক ব্যবস্থার উপর জোর দাবি জানিয়েছি। এই সুপারিশগুলি গুরুত্বপূর্ণ মাপকাঠি, এবং মানবাধিকার এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যগুলির মধ্যে সংযোগ জোরদার করতে সাহায্য করে।’

হিন্দুদের ওপর সহিংসতায় উদ্বেগ

ব্যাচলেট বলেন, ‘আমি ট্রান্সজেন্ডারদের জন্য সরকারের আইনি স্বীকৃতিকে স্বাগত জানাই এবং আমি আশা করি সমকামীদের মৌলিক মানবাধিকারকে সম্মান, সুরক্ষা পূরণ করতে তারা পদক্ষেপ নেবে।

‘আমি সংখ্যালঘু সম্প্রদায় বিশেষ করে হিন্দু এবং আদিবাসীদের বিরুদ্ধে চালানো সহিংসতা ও জমি দখলের বিষয়ে গুরুত্ব আরোপ করেছি। সকল সহিংসতা ও হামলার হাত থেকে তাদের রক্ষার ওপরে জোর দিয়েছি।’

পার্বত্য শান্তি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের সুপারিশ

শেখ হাসিনার প্রথম শাসনামলে পার্বত্য শান্তি চুক্তির প্রতিটি ধারা বাস্তবায়নের সুপারিশও করেন জাতিসংঘের মানবাধিকার কমিশনার।

তিনি বলেন, ‘২৫ বছর আগে পার্বত্য চট্টগ্রামে শান্তিচুক্তি হয়েছিল। এটি ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্জন। কিন্তু মানবাধিকার লঙ্ঘনের ক্রমাগত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে, ভূমি বিরোধ এবং নিরস্ত্রীকরণের প্রয়োজনীয়তার সঙ্গে যুক্ত। আমি শান্তি চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়ন এবং নিরপেক্ষ পর্যবেক্ষকদের ওইসব এলাকায় অবাধ প্রবেশাধিকারের আহ্বান জানিয়েছি।’

রাজনীতিতে নারীর আরও অংশগ্রহণ চায় জাতিসংঘ

ব্যাচেলেট বলেন, ‘সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্থানীয় পর্যায়ে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ায় নারীদের আনুষ্ঠানিক অংশগ্রহণের উন্নতি হয়েছে। আমি সরকারকে সকল স্তরে সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে নারীর সংখ্যা বাড়ানোর জন্য সক্রিয় পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছি।

‘অনেক অগ্রগতি হয়েছে - কিছু সেক্টরে আরও বেশি সংখ্যক মহিলা শ্রমশক্তিতে প্রবেশ করেছে, মেয়েদের শিক্ষার উন্নতি হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে লিঙ্গ সমতা পৌঁছেছে। কিন্তু বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় নীতি কাঠামো গ্রহণ করা সত্ত্বেও, লিঙ্গ সমতার চ্যালেঞ্জগুলি রয়ে গেছে।

‘এখনও এদেশে যৌন সহিংসতাসহ নারীর প্রতি সহিংসতা উচ্চ রয়ে গেছে এবং ভুক্তভোগীদের জন্য ন্যায়বিচার ও জবাবদিহিতা পাওয়া কঠিন।’

রোহিঙ্গাদের চোখে আতঙ্ক ও ভয়

ব্যাচলেট বলেন, ‘আমি কক্সবাজার সফর করেছি। সেখানকার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গাদের আমি আতঙ্কগ্রস্ত অবস্থায় পেয়েছি। সাধারণ রোহিঙ্গারা আমাকে জানিয়েছে, তারা আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটায়। এমন কি তারা টয়লেটে যেতেও ভয় পায়। এই আতঙ্ক নিরাপত্তাহীনতার।

‘ক্যাম্পে ইদানিং অনেক হত্যাকাণ্ড ঘটছে। মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ডের শিকার হয়েছেন। পাচারের শিকার হচ্ছেন অনেকে। অনেকে মাদক চোরাচালানে জড়িত হচ্ছেন বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

আরও পড়ুন:
মানবাধিকার ও প্রতিবন্ধী জনগোষ্ঠী
মানবাধিকার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত
র‍্যাব কর্মকর্তাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে: মানবাধিকার কমিশন
বিশ্ব মানবাধিকার দিবস: বৈষম্য ঘুচিয়ে মানবাধিকারের সুরক্ষা চাই
মানবাধিকার কমিশনের ভূমিকা কী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Public participation in political programs during working days

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস বুধবার রাজধানীর রমনায় আওয়ামী লীগের মিছিলেন একাংশ। এই কর্মসূচির কারণে এদিন দুপুর থেকে নগরে চলাচলে ছিল তীব্র ভোগান্তি। ছবি: নিউজবাংলা
‘ভোগান্তির কোনো শেষ নেই। একটার পর একটা মিছিল যাচ্ছে। সব বাস থমকে দাঁড়িয়ে। মানুষ সব হেঁটে যাওয়ার চেষ্টা করছে। এসব প্রোগ্রাম এমন দিনে হওয়া উচিত, যেদিন ছুটি থাকে অথবা এমন জায়গায় হোক, যে জায়গাগুলো উন্মুক্ত। নেতাদের মধ্যে এই বোধ আছে কি না, সেটাই আমার প্রশ্ন।’

বৃহস্পতিবার জন্মাষ্টমীতে সরকারি ছুটির আগের দিন রাজধানীতে চলাচলে দুঃসহ অবস্থা। দুপুরের পর থেকে প্রধান সড়কগুলোতে ঠায় দাঁড়িয়ে যানবাহন। কোনো রুটে আবার গাড়ির অভাবে দীর্ঘ অপেক্ষা যাত্রীদের। এর কারণ, সেই রুট দিয়ে আসতে পারছে না আটকে থাকা গাড়ি।

দুই দিনের সাপ্তাহিক ছুটির আগে এক দিন বাড়তি ছুটির কারণে এই অবস্থা তৈরি হয়নি। এটি তৈরি হয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের একটি কর্মসূচিকে ঘিরে।

২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট দেশজুড়ে একযোগে বোমা হামলার স্মরণে আওয়ামী লীগের প্রতি বছরের কর্মসূচির সঙ্গে এবারের কর্মসূচির পার্থক্য আছে। এবার অন্যান্য বছরের তুলনায় ক্ষমতাসীন দল আরও বেশি কর্মী-সমর্থকদের জড়ো করতে চাইছে। কেবল ঢাকা নয়, দেশের প্রতিটি মহানগর, জেলা শহর, উপজেলা, এমনকি ইউনিয়নেও একই ধরনের জমায়েতের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে লোকসমাগম।

রাজধানীতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জমায়েত হয়েছেন রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের সামনে। বিকেল ৪টায় জমায়েত হওয়ার কথা থাকলেও আগে থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে আসেন নেতাকর্মীরা। ফলে কার্যত দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন সড়ক অচল হয়ে যায় মিছিলে মিছিলে। আর এর প্রভাবে তৈরি হয় দুঃসহ যানজট।

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস
আওয়ামী লীগের কর্মসূচিতে নগরীর নানা প্রান্ত থেকে আসা মিছিলের কারণে এক পর্যায়ে শাহবাগ থেকে গুলিস্তানের দিতে যাতায়াত পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়

আওয়ামী লীগের এই কর্মসূচি মূলত ছয় দিন আগে বিএনপির বড় একটি জমায়েতের জবাব। সেদিনও ছিল কর্মদিবস। দুই দিনের সাপ্তাহিক ছুটির আগে সেদিন নয়াপল্টনের সড়কে নেতাকর্মীরা অবস্থান নেন মিছিল করে। সেদিনও নয়াপল্টন, কাকরাইলসহ আশপাশের এলাকায় যান চলাচল পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। গভীর রাত পর্যন্ত রয়ে যায় এর রেশ।

জাতীয় নির্বাচনের দেড় বছর আগেই নানা ইস্যুতে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজনৈতিক অঙ্গন। রাজপথে বাড়ছে কর্মসূচি। আর বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কর্মসূচিগুলো পালিত হচ্ছে কর্মদিবসে সড়ক বন্ধ রেখে।

বড় ধরনের কর্মসূচিগুলো ছুটির দিনে করা যায় কি না, এ নিয়ে চিন্তাভাবনা করার দাবি করছেন নগরবাসী।

ক্ষমতাসীন দলের এক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেছেন, তাদের আপত্তি নেই। তবে এ জন্য সব দলের ঐকমত্য জরুরি।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মনে করেন, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের জন্য উন্মুক্ত করার সুপারিশ করেছেন। অন্যদিকে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবির সাধারণ সম্পাদক রুহিন আহমেদ প্রিন্স মনে করেন, সরকার জনগণের দুর্ভোগ বিবেচনা করে না। এখন এসব নিয়মনীতি অলীক কল্পনা।

রাজপথে কর্মসূচি বাড়ছে

গত ৪ আগস্ট নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে সড়কে অবস্থান নিয়ে ভোলায় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত ছাত্রদল নেতা নুরে আলমের জানাজা পড়ে বিএনপি। পরে সেখানে হয় সমাবেশ।

দুই দিন পর একই সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করে বিএনপির সহযোগী সংগঠন ছাত্রদল। এই কর্মসূচি পালনেরও কারণও ভোলায় সংঘর্ষে দলের দুই কর্মীর মৃত্যু।

ভোলার সেই ঘটনায় ৮ আগস্ট একই সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে বিএনপির সহযোগী সংগঠন যুবদল।

এর তিন দিন পর ১১ আগস্ট সেই সড়কে দুপুরের পর থেকে অবস্থান নিয়ে সন্ধ্যার আগ পর্যন্ত সমাবেশ করে বিএনপি।

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস
চলতি মাসে বেশ কয়েক দিন নয়াপল্টনের সড়ক বন্ধ রেখে জমায়েত করে বিএনপি। প্রতিটি দিনই সড়কে দেখা গেছে তীব্র যানজট

একই দিনে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ দেখায় নতুন রাজনৈতিক জোট গণতান্ত্রিক মঞ্চ।

এর পরদিন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বিএনপিপন্থি পেশাজীবী সংগঠনের সমাবেশ হয় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে। সেদিনও যান চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে কয়েক ঘণ্টা।

১৬ আগস্ট জ্বালানি তেল ও ইউরিয়া সারের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার এবং গণপরিবহনের ভাড়া বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত বাতিলের দাবিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অভিমুখে মিছিল করে গণতান্ত্রিক বাম জোট। সেটি শাহবাগে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। এই কর্মসূচি ঘিরেও কয়েক ঘণ্টা ব্যস্ত এ সড়ক স্থবির হয়ে থাকে।

পরদিন নগরবাসীর দুর্ভোগ হয় আওয়ামী লীগের কর্মসূচির কারণে। দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বলতে গেলে স্থবির হয়ে থাকে নগরীর একটি বড় অংশ।

আগামী ২২ আগস্ট থেকে দেশব্যাপী লাগাতার কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। দলটির কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে সভা, সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করতে নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস

বুধবার আওয়ামী লীগের কর্মসূচির দিন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শরীফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আজকে সারা ঢাকা সিটির লোককে হাঁটতে হচ্ছে। এই প্রোগ্রামের কারণে বেলা ৩টার দিকে যে অবস্থা এই ভোগান্তি রাত পর্যন্ত থাকবে। প্রোগ্রাম শেষ হওয়ার পর আরও ভয়াবহ হয়েছে।

‘আমি শাহবাগ যাওয়ার জন্য বাসে উঠেছিলাম। তবে জ্যাম দেখে বাস থেকে নেমে হেঁটে যাই। অনেকেই বাচ্চা নিয়ে গরমে ঘামতে ঘামতে যাচ্ছে। ঘামে ভিজতেছে, কষ্ট করছে।’

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস
বাম দলের তুলনামূলক স্বল্প সংখ্যক কর্মীদের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অভিমুখে মিছিলের কারণে মঙ্গলবার ব্যাপক ভোগান্তি হয় নগরবাসীর

তেজগাঁওয়ের বাসিন্দা তাসিন মল্লিক বলেন, ‘ভোগান্তির কোনো শেষ নেই। একটার পর একটা মিছিল যাচ্ছে। সব বাস থমকে দাঁড়িয়ে। মানুষ সব হেঁটে যাওয়ার চেষ্টা করছে।’

তিনি বলেন, ‘এসব প্রোগ্রাম এমন দিনে হওয়া উচিত, যেদিন ছুটি থাকে অথবা এমন জায়গায় হোক যে জায়গাগুলো উন্মুক্ত।’

রাজনৈতিক দলগুলোর জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতার অভাব আছে বলেও মনে করেন তাসিন। বলেন, ‘নেতাদের মধ্যে এই বোধ আছে কি না, সেটাই আমার প্রশ্ন।’

রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে ভাবান্তর নেই

তীব্র যানজটের মধ্যে কর্মদিবসে রাজপথে কর্মসূচিতে জনভোগান্তির বিষয়টি নজরে আনলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবউল আলম হানিফ বলেন, ‘ছুটির দিনে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করে জনদুর্ভোগ এড়াতে হলে সব রাজনৈতিক দলের ঐকমত্য প্রয়োজন।’

ক্ষমতাসীন দল হিসেবে আপনাদের দায়দায়িত্ব তো বেশি- এমন মন্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ রাজনীতিতে গুণগত পরিবর্তনের কাজ করছে। জনদুর্ভোগের কর্মসূচি আমরা এড়িয়ে চলতে চাই। তবে দিবসভিত্তিক কর্মসূচিগুলো রুটিন ওয়ার্ক।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সভা, সমাবেশ, মিছিল এগুলো সাংবিধানিক অধিকার।’

তবে তার মতে, তাদের কর্মসূচিতে জনগণ খুশি হয়েছে। তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, এটা ঠিক রাস্তার ওপরে হওয়ায় কিছুটা ট্র‍্যাফিক সমস্যা হয়েছে। তবে এতদিন পর বিরোধী দলের বড় সমাবেশের উপস্থিতি দেখে জনগণের ভোগান্তি নয়, তারা খুশি হয়েছে।’

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশের অনুমতি না দেয়াকেও সড়কে কর্মসূচি পালনের একটি কারণ হিসেবে দেখান বিএনপি নেতা। বলেন, ‘নানা রকম স্থাপনা বানিয়ে সেটা অনুপযোগী করে ফেলা হচ্ছে।’

তাহলে সমাধান কী- জানতে চাইলে যেদিন বিএনপির কর্মসূচি থাকে, সেদিন সেসব রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে বিকল্প রাস্তায় দিয়ে গাড়ি চলাচলের ব্যবস্থা করার পরামর্শ দেন ফখরুল।

সেই সঙ্গে সরকারকে গণতান্ত্রিক কর্মসূচি পালনের সুযোগ দেয়ার পরামর্শ দিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানকে সমাবেশের উপযোগী করে তোলার কথা বলেছেন।

কর্মদিবসে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে জনগণের নাভিশ্বাস
জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের সড়কে নতুন জোট গণতন্ত্র মঞ্চের মিছিল। ওই সড়কে নিত্যদিন নানা কর্মসূচিত ব্যাহত হয় যান চলাচল

জনগণের ‘অধিকার ফিরিয়ে দেয়ার কথা বলে’ নতুন যে জোট গঠন হয়েছে, সেই গণতন্ত্র মঞ্চের সবচেয়ে প্রবীণ নেতা আ স ম আবদুর রবের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি তার রাজনৈতিক পরামর্শক শহীদুল্লাহ ফরায়জীর মাধ্যমে জবাব পাঠান।

তিনি জানান, আন্দোলন সংগ্রামে, রাজপথে প্রতিবাদ মিছিল-বিক্ষোভ রাজনৈতিক সংস্কৃতির অংশ। তবে বর্তমান সরকার বিরোধী দলগুলোর আন্দোলন সংগ্রামকে বল প্রয়োগে স্তব্ধ করে ক্ষমতাকে ধরে রাখার অপকৌশল নিয়েছে।

তিনি বলেন, 'এমন কর্মসূচি সবার জন্য সমান হতে হবে। বিরোধীদের সরকার কোনো সভা সমাবেশ বা জনসভা করার অনুমোদন দেয় না। কদাচিৎ শর্তের বেড়াজালে একদিন আগে অনুমোদন দিলে তা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয় না।

'এই সরকারকে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে বিদায় করতে হলে জনগণকে রাজপথই দখল করতে হবে। স্বৈরাচারের সাথে জনগণের দ্বন্দ্ব মীমাংসিত হবে রাজপথেই। জাতীয় বৃহত্তর স্বার্থে আন্দোলন সংগ্রামের প্রয়োজনে জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়।'

তিনি বলেন, 'অতীতে আওয়ামী লীগ ৯৬ ঘণ্টা অবরোধ দিয়েছে, রাজপথ দখল করেছে, ট্রেন লাইন উপড়ে ফেলেছে, বাসে আগুন দিয়েছে, এখন বিরোধী দলকে জনগণের দুর্ভোগের কথা স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে। আওয়ামী লীগ বিরোধী দলে থাকলে এক ধরনের, আর সরকারে থাকলে আরেক ধরনের আচরণ করে।'

গণ আন্দোলন গণবিস্ফোরণের প্রয়োজনে যা করার প্রয়োজনে তাই করতে হবে, সে জন্য সাময়িক দুর্ভোগ হতে পারে বলেও মনে করেন তিনি।

একই প্রশ্নে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক রুহিন হোসেন প্রিন্স দায় দেন সরকারকে। তিনি বলেন, ‘সরকার যখন নায্য আচরণ করে, তখন দায়িত্বশীল সংগঠনগুলো এগুলো মেনে চলে। তবে সরকার যখন নায্য আচরণ করতে পারে না, তখন এসব নিয়মনীতি মানার প্রশ্ন ওঠে না।’

তিনি বরং রাজপথে কর্মসূচি আরও বাড়ানোর ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, ‘জনগণকে আমি আহ্বান জানাব, তারা যে দুরবস্থার মধ্যে পড়েছে অর্থাৎ মানুষের যে সংকট, তা সমাধানে প্রতিবাদী হয়ে উঠুক। যে যার অবস্থান থেকে প্রতিবাদ জানাবে।’

আরও পড়ুন:
ড. কামালকে ডাকছে না বিএনপি
আলেমদের ধোঁকা দিয়ে রাস্তায় নামানো হয়েছিল: ইসলামী ঐক্যজোট
সাইফুল-সাকিকে ছাড়াই চলবে বাম জোট
‘বিআইপি’ নামে নতুন রাজনৈতিক দলের ঘোষণা
সিলেটের রাজনীতিতে নেতৃত্ব-শূন্যতা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Extreme human rights violations in country during military rule Prime Minister

সামরিক শাসনামলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

সামরিক শাসনামলে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী
জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট গণভবনে সাক্ষাৎকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর এর বিচার বন্ধে তৎকালীন সেনা সমর্থিত সরকার ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে। সামরিক সরকার বঙ্গবন্ধুর খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করে।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর দীর্ঘ সামরিক শাসনামলে বাংলাদেশে চরমভাবে মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার মিশেল ব্যাচেলেট বুধবার সকালে গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে এলে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। বেশেলেট চারদিনের সফরে রোববার সকালে বাংলাদেশে আসেন।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তার পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। ছোট বোন শেখ রেহানাসহ নিজে দেশের বাইরে থাকায় ওই হত্যাযজ্ঞ থেকে বেঁচে যাই। এমনকি বিচার চাইতেও আমাদেরকে বাধা দেয়া হয়েছে।’

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যাকাণ্ডের বিচার বন্ধে তৎকালীন সেনা সমর্থিত সরকার ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল বলেও জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারকে জানান প্রধানমন্ত্রী।

জোরপূর্বক নির্বাসন থেকে দেশে ফেরার উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তৎকালীন সামরিক সরকার বঙ্গবন্ধুর খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের রাজনীতিতে পুনর্বাসিত করেছিল।’

দুই মেয়াদে দক্ষিণ আমেরিকার দেশ চিলির প্রেসিডেন্ট থাকা ব্যাচেলেট বলেন, ‘আমার দেশেও যখন একটি অত্যাচারী সরকার ক্ষমতায় ছিল, তখন আমার পরিবারকেও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর মতো অমানবিক নির্যাতনের শিকার হতে হয়েছে।’

জাতিসংঘের হাইকমিশনার জানান, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শন করে তিনি গভীরভাবে আলোড়িত হয়েছেন।

বৈঠকে বর্তমান বৈশ্বিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা করেন তারা। চলমান কোভিড-১৯ মহামারি, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, নিষেধাজ্ঞা ও পাল্টা নিষেধাজ্ঞা বিশ্বজুড়ে সংকট তৈরি করেছে বলেও তারা একমত হয়েছেন।

রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘রোহিঙ্গারা মিয়ানমারের নাগরিক তা দেশটি অস্বীকার করে না। তবে তারা এখনও তাদের বাস্তুচ্যুত নাগরিকদের প্রত্যাবাসনে সাড়া দেয়নি। মিয়ানমারকে তার নাগরিকদের দেশে ফিরিয়ে নিতে হবে।’

তিনি আরও উল্লেখ করেন, বাংলাদেশ কখনও কারো সঙ্গে যুদ্ধ চায় না।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তির উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ওই চুক্তির পর ৬২ হাজার শরণার্থী বাংলাদেশে ফিরেছে এবং এক হাজার ৮০০ সশস্ত্র ক্যাডার আত্মসমর্পণ করেছে।’

ব্যাচেলেট কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের জন্য শিক্ষা ও কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি করতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন। জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের জন্য সেই সুযোগের ব্যবস্থা করা যেতে পারে।‘

জাতিসংঘের হাইকমিশনার বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে জাতিসংঘ আইন মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কাজ করছে এবং এ লক্ষ্যে কিছু পর্যবেক্ষণ দিয়েছে।’

বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলাদেশ কাউকে সন্ত্রাসবাদের জন্য তার মাটি ব্যবহার করতে দেবে না।’

বাংলাদেশের সার্বিক উন্নয়নে সরকারের গৃহীত পদক্ষেপগুলো সংক্ষেপে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘পদ্মা সেতু দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের উন্নয়নে অবদান রাখছে। আমরা কৃষি প্রক্রিয়াজাতকরণ শিল্প স্থাপনের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের জন্য কৃষির ওপর জোর দিচ্ছি।

‘আশ্রয়ণ প্রকল্পের অধীনে এক লাখ ৮৭ হাজারেরও বেশি পরিবার বিনামূল্যে বাড়ি পেয়েছে। সরকার প্রতিটি গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষকে আবাসন প্রকল্পের আওতায় আনার জন্য কাজ করছে।’

বৈষম্য দূরীকরণে বাংলাদেশের এসডিজি বাস্তবায়নের অগ্রগতি ও কাজের প্রশংসা করেন ব্যাচেলেট।

বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান তিনি।

সাক্ষাৎকালে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব নিয়েও আলোচনা হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ উপকূলীয় অঞ্চলে বনায়নের ওপর জোর দিয়েছে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং ঢাকায় জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়ক গুয়েন লুইস এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর নিরাপত্তা ঝুঁকি অনেক বেশি: ডিএমপি কমিশনার
ছুটির দিনে টুঙ্গিপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত
বঙ্গমাতা থেকে নারীরা আত্মত্যাগের শিক্ষা নিতে পারেন: প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গমাতা বিশ্বব্যাপী নারীদের কাছে অনুকরণীয়: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Day noon shooting and jewelery robbery

দিনদুপুরে গুলি চালিয়ে জুয়েলারি লুট

দিনদুপুরে গুলি চালিয়ে জুয়েলারি লুট প্রতীকী ছবি
জুয়েলারি ব্যবসায়ী মো. মোক্তার হোসেন জানান, বেলা ২টার দিকে একদল ডাকাত ঢুকে পড়ে আব্দুল্লাহপুর রসুলপুর বাজারের নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটে। সেখানে নিচতলায় থাকা নিউ আল আমিন জুয়েলার্সে চারজন ঢুকে অস্ত্রের মুখে স্বর্ণালংকার লুট করে। দোকানে থাকা নগদ টাকাও তারা নিয়ে নেয়।

ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ এলাকায় একটি জুয়েলারিতে ডাকাতি হয়েছে। এ সময় স্বপন মণ্ডল নামে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তিনি স্থানীয় নিউ আল আমিন জুয়েলার্সের মালিক।

বুধবার বেলা ২টার দিকে রসুলপুর বাজারে নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটের নিচতলায় এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে।

গুলিবিদ্ধ স্বপন মণ্ডলকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে (পঙ্গু) ভর্তি করা হয়েছে।

দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ জামান বলেন, ‘একটি স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি। তাৎক্ষণিক কাউকে গ্রেপ্তার সম্ভব হয়নি।’

স্বপনকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন পাশের মার্কেটের জুয়েলারি ব্যবসায়ী মো. মোক্তার হোসেন। তিনি নিউজবাংলাকে জানান, বেলা ২টার দিকে একদল ডাকাত ঢুকে পড়ে আব্দুল্লাহপুর রসুলপুর বাজারের নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটে। সেখানে নিচতলায় থাকা নিউ আল আমিন জুয়েলার্সে চারজন ঢুকে অস্ত্রের মুখে স্বর্ণালংকার লুট করে। দোকানে থাকা নগদ টাকাও তারা নিয়ে নেয়। ডাকাত দলের অন্য সদস্যরা বাইরে অবস্থান করছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সংবাদ পেয়ে মার্কেটের অন্য ব্যবসায়ীরা এগিয়ে এলে ডাকাতরা কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পালিয়ে যায়।

স্বর্ণালংকার লুটের সময় দোকান মালিক স্বপন মণ্ডল বাধা দেন বলে জানান মোক্তার। তখন ডাকাতরা তাকে লক্ষ্য করে কয়েকটি গুলি ছোড়ে। একটি গুলি স্বপনের ডান পায়ের হাঁটুতে বিদ্ধ হয়।

স্বপনকে উদ্ধারের পর বিকেল ৪টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

জুয়েলারি দোকানটি থেকে কী পরিমাণ র্স্বণ ও টাকা লুট হয়েছে তা জানাতে পারেননি ব্যবসায়ীরা। অন্য কোনো দোকানে লুট হয়নি, সে ক্ষেত্রে ডাকাতরা টার্গেট করেই স্বপনের দোকানে ঢুকেছে বলে তারা মনে করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ব্যবসায়ীরা জানান, ডাকাত দলের সদস্যরা মুখোশ ব্যবহার করেনি। তাদের হাতে অস্ত্র ছিল, মুখ ছিল খোলা। ডাকাতির সময় বৃষ্টি হচ্ছিল বলে মার্কেটে লোকজনের উপস্থিতি ছিল কম।

৪৬ বছর বয়সী স্বপন মণ্ডল দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বাগুইর গ্রামের মৃত গোপিন চন্দ্রের ছেলে। তিনি নাসির উদ্দিন সুপার মার্কেটের স্বর্ণ ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি।

ঢামেক পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) মোহাম্মদ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘কেরানীগঞ্জ থেকে আনা গুলিবিদ্ধ স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর পঙ্গুতে রেফার্ড করা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে জানানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
দেশি গয়নায় বিশ্ব জয়ের প্রত্যাশা
জুয়েলারি মেলা: ১০ লাখ টাকা জেতার সুযোগ
দেশের প্রথম জুয়েলারি এক্সপো শুরু ১৭ মার্চ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Economists see three ways to control inflation

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে তিন উপায় দেখছেন অর্থনীতিবিদরা

মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে তিন উপায় দেখছেন অর্থনীতিবিদরা
মঙ্গলবার একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মূল্যস্ফীতি কীভাবে প্রশমন করা যায়, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কৌশল খুঁজতে বলেছেন। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এটি করতে হলে তিনটি পদক্ষেপ নিতে হবে সরকারকে। 

বর্তমান পরিস্থিতি মোকাবিলায় মূল্যস্ফীতি প্রশমনে সরকারকে তিন পদক্ষেপ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। এগুলো হলো: বৈদেশিক মুদ্রার বিনিময় হার স্থিতিশীল রাখা, ব্যাংক খাতের ঋণের সুদ হারের নির্ধারিত সীমা তুলে দেয়া এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘নীতি সুদ হার’ বাড়ানো।

এসব পদক্ষেপ নিলে মূল্যস্ফীতি সহনীয় হবে এবং সামষ্টিক অর্থনীতি স্থিতিশীল হবে বলে মত দেন তারা।

বৈশ্বিক ও অভ্যন্তরীণ পরিস্থিতির কারণে সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশও মূল্যস্ফীতির জ্বরে কাঁপছে। আর মূল্যস্ফীতির যাঁতাকলে পিষ্ট হচ্ছে দেশের সাধারণ মানুষ।

বিশ্ব বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি দেশের ভেতরেও এর দাম সমন্বয় করেছে সরকার। এর অভিঘাতে পণ্যমূল্য আরও বাড়ায় সীমিত ও নির্ধারিত আয়ের মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে।

মূল্যস্ফীতির কারণে সাধারণ মানুষ যে কষ্টে আছে, তার প্রতিফলন উঠে এসেছে সরকারপ্রধানের বক্তব্যেও।

মঙ্গলবার একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মূল্যস্ফীতির কারণে নিম্ন আয়ের মানুষের কষ্ট হচ্ছে। কীভাবে মূলস্ফীতি প্রশমন করা যায়, সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের কৌশল খুঁজতে হবে।’

বাংলাদেশের পরিসংখ্যান ব্যুরো জানিয়েছে, জুলাই মাস শেষে দেশে সার্বিক মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৪৮ শতাংশ। গ্রামে এই হার শহরের তুলনায় বেশি।

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, দেশে প্রকৃত মূল্যস্ফীতি আরও বেশি। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা সিপিডি ও সানেম দাবি করেছে দেশে মূল্যস্ফীতির হার বিদ্যমান হারের চেয়ে দ্বিগুণ। শুধু বাংলাদেশেই নয়, রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাবে সারা বিশ্বেই মূল্যস্ফীতির সূচক উর্ধ্বমুখী।

বৈশ্বিক সংকটের কারণে বর্তমানে দেশে ডলারের তীব্র সংকট চলছে। এক ডলার কিনতে এখন খরচ করতে হচ্ছে একশ টাকার ওপরে। অর্থাৎ স্থানীয় টাকার মান কমছে আর ডলার রকেট গতিতে ছুটছে। ডলার নিয়ে এমন সংকট আগে কখনই দেখা যায়নি দেশে। ফলে ডলারের সঙ্গে টাকার বিনিময় হারে অস্থিরতা চলছে।

বিনিময় হার বাজারের উপরে ছেড়ে দেয়ার পরামর্শ দিয়ে অর্থনীতিবিদরা বলেছেন, মূল্যস্ফীতির লাগাম টেনে ধরতে হলে বিনিময় হার স্থিতিশীল করা আবশ্যক।

বর্তমান পরিস্থিতিতে সংকট মোকাবিলায় প্রতিবেশী দেশ ভারতসহ প্রায় সব দেশেই কেন্দ্রীয় ব্যাংক ‘নীতি সুদ’ হার বাড়িয়ে মুদ্রা সরবরাহ নিয়ন্ত্রণ করার উদ্যোগ নিয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক চুপ করে বসে আছে কেন, এ প্রশ্ন তুলছেন অনেকেই। অর্থনীতিবিদরা মনে করেন, মূল্যস্ফীতি সহনীয় করার আরেকটি উপায় হচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ‘নীতি সুদ’ হার বাড়ানো।

বেসরকারি বিনিয়োগে খরার কারণে ব্যাংক খাতে বিপুল পরিমাণ উদ্বৃত্ত তারল্য রয়েছে। ঋণের সুদ হার ৯ শতাংশ বেঁধে দেয়ার পরও পরিস্থিতির কোনো উন্নতি দেখা যাচ্ছে না। অর্থনীতিবিদরা জানান, সরকার যে উদ্দেশ্যে ব্যাংক খাতে ঋণ ও আমানতের সুদ হার ৯/৬ বেঁধে দিয়েছে, তা সফল হয়নি। তাই ঋণের সুদ হার ‘বাজার ভিত্তিক’ করার পরামর্শ দেন তারা।

যোগাযোগ করা হলে তত্ত্বাবাধায়ক সরকারের সাবেক অর্থ উপদেষ্টা ড. এ বি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করা খুব সহজ নয়। এখন যে মূল্যস্ফীতি হচ্ছে, তা বৈশ্বিক কারণে। তবে আমরা দেখতে পাচ্ছি বিশ্ববাজারে কিছু স্বস্তির আভাস। জ্বালানি তেলের দাম কমছে। খাদ্যশস্যের দামও কমতে শুরু করেছে। এ ধারাবাহিকতা চলতে থাকলে আশা করা হচ্ছে আগামী দুই মাসের মধ্যে মূল্যস্ফীতি কমে আসবে।’

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাবেক কর্মকর্তা ও বেসরকারি গবেষণা সংস্থা পিআরআই-এর নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সুদহার বাড়ালে টাকা আরও দামি হবে। তখন ডলারের চাহিদা কমে আসবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভারতসহ প্রায় সব দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক নীতি সুদ হার বাড়িয়ে বাজার থেকে মুদ্রা তুলে নিয়ে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংককে এ বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে হবে।’

খ্যাতনামা এই অর্থনীতিবিদ মনে করেন, ব্যয়ের ক্ষেত্রে কৃচ্ছ্রসাধনে সরকার যে সব পদক্ষেপ নিয়েছে, সেগুলো ঠিকই আছে। সিদ্ধান্তগুলো ঠিকমতো বাস্তবায়ন হচ্ছে কি-না সে বিষয়ে নিয়মিত তদারকি করতে হবে।

আরও পড়ুন:
মূল্যস্ফীতি প্রশমনের কৌশল খুঁজুন: প্রধানমন্ত্রী
জ্বালানির দাম বাড়ায় মূল্যস্ফীতি আরও বাড়বে: অর্থমন্ত্রী
চার সূচকের পর স্বস্তি এবার মূল্যস্ফীতির হিসাবে
দু-এক মাসের মধ্যে নিয়ন্ত্রণে মূল্যস্ফীতি: অর্থমন্ত্রী
ব্যাংকে সুদহারের নয়-ছয় নিয়ে উভয় সংকট

মন্তব্য

p
উপরে