× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Baby born due to stomach rupture after being hit by a truck Police wants the drivers remand
hear-news
player
print-icon

ট্রাকচাপায় পেট ফেটে শিশুর জন্ম: চালকের রিমান্ড চায় পুলিশ

ট্রাকচাপায়-পেট-ফেটে-শিশুর-জন্ম-চালকের-রিমান্ড-চায়-পুলিশ
এসআই মো. সেকান্দার বলেন, ‘র‌্যাব মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিপনকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। এরপর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তার সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য জানতে পেরেছি। তবে তাকে রিমান্ডে নিতে পারলে আরও অনেক কিছু জানা যাবে।’

ময়মনসিংহের ত্রিশালে ট্রাকচাপায় স্বামী-স্ত্রী ও তাদের মেয়েকে হত্যার ঘটনায় গ্রেপ্তার চালক রাজু আহমেদ শিপনকে পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

জেলার মুখ্য বিচারিক হাকিম ৩ নম্বর আমলি আদালতে বুধবার বেলা ২টার দিকে শিপনকে পাঠানো হয়েছে।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও ত্রিশাল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. সেকান্দার।

তিনি বলেন, ‘র‌্যাব মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিপনকে আমাদের কাছে হস্তান্তর করেছে। এরপর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তার সম্পর্কে বেশ কিছু তথ্য জানতে পেরেছি। তবে তাকে রিমান্ডে নিতে পারলে আরও অনেক কিছু জানা যাবে।’

ঢাকার সাভার এলাকা থেকে সোমবার রাতে শিপনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরদিন বেলা সাড়ে ১১টায় কারওয়ান বাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে এ বিষয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন র‍্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

তিনি জানান, গ্রেপ্তারের পর শিপন বলেছেন, দুর্ঘটনার সময় তার সহকারী ঘুমাচ্ছিলেন। টানা ট্রাক চালানোর কারণে তিনিও ছিলেন ক্লান্ত। একটি বাসকে সাইড দিতে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

তিনি আরও জানান, গত ১১ জুলাই থেকে একটানা মালামাল পরিবহন করে আসছিলেন শিপন। এর মধ্যে তিনি একবার রাজশাহী থেকে আম নিয়ে কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে মালামাল আনলোড করে পুনরায় রাজশাহী যান।

১৫ জুলাই চাঁপাইনবাবগঞ্জের কানসাট থেকে আম নিয়ে এবং পরবর্তী সময় রাজশাহীর নৌহাটা থেকে আরেক দফায় আলু বোঝাই করে কিশোরগঞ্জের তাড়াইলের এক ব্যবসায়ীর কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য রাত ১২টার সময় রওনা করেন।

পথে শিপন হালকা বিরতি নিয়ে দুর্ঘটনার আগ পর্যন্ত একটানা গাড়ি চালিয়ে আসছিলেন। কিশোরগঞ্জ যাওয়ার পথে ময়মনসিংহের ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ডের কাছে পৌঁছালে রাস্তা পারাপারের জন্য দাঁড়িয়ে থাকা জাহাঙ্গীর আলম, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রত্না বেগম ও মেয়ে সানজিদা আক্তারকে চাপা দেন। ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান জাহাঙ্গীর। মৃত্যুযন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকা রত্নার পেট চিড়ে বেরিয়ে আসে কন্যাশিশু।

এ সময় স্থানীয়রা নিহত দম্পতির আহত সন্তান সানজিদা ও সদ্যোজাত কন্যাকে উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। কিন্তু হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার আগেই সানজিদারও মৃত্যু হয়। সদ্যোজাত শিশুটির ডান হাতের দুটি হাড় ভেঙে গেলেও সে বেঁচে আছে।

দুর্ঘটনার পর উপস্থিত লোকজন ট্রাকটি থামায়। তখন সুযোগ বুঝে শিপন ঢাকাগামী একটি বাসে ওঠেন। পরবর্তী সময় বাস থেকে ময়মনসিংহ বাইপাসে নামেন এবং সেখান থেকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে প্রথমে মুক্তাগাছা এবং পরে অন্য একটি বাসে করে টাঙ্গাইলের এলেঙ্গা পৌঁছান। সেখান থেকে তার পরিচিত বিভিন্ন ট্রাকচালকের গাড়িতে উঠে আত্মগোপনে থাকেন।

আরও পড়ুন:
ট্রাকচাপায় মা-বাবা-মেয়ে নিহতের ঘটনায় মামলা
পেট ফেটে ভূমিষ্ঠ শিশুর কল্যাণ নিশ্চিতে রিট
পেট ফেটে বের হওয়া শিশুকে দত্তক চান শতাধিক মানুষ
ট্রাকচাপায় পেট ফেটে কীভাবে শিশুর জন্ম
ট্রাকচাপায় মৃত্যুর আগে রাস্তায় শিশুর জন্ম

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Even after a month of journalist Tulis death there is no end to the investigation

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই সাংবাদিক সোহানা পারভীন তুলি। ছবিটি ফেসবুক থেকে নেয়া।
হাজারীবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনও ময়নাতদন্ত ও মোবাইল ফোনের ফরেনসিক রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া যাবে।’

সাংবাদিক সোহানা পারভীন তুলির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারের এক মাসেও তদন্তে তেমন অগ্রগতি হয়নি। মৃত্যুর আগের দিন তুলি তার বন্ধু রফিকুল ইসলাম রঞ্জুর ফোনে একটি মেসেজ পাঠান। সেখানে আত্মহত্যার হুমকির কথা থাকলেও রঞ্জুকে একবারের পর আর জিজ্ঞাসাবাদ করেনি পুলিশ।

সাংবাদিক রঞ্জুর বিরুদ্ধে তুলিকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করার অভিযোগ তুলছেন তার পরিবার ও সাবেক সহকর্মীরা। এ ঘটনায় হাজারীবাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, রঞ্জুর সঙ্গে তুলির কী সম্পর্ক ছিল, মোবাইল ফোনে বিভিন্ন সময়ে তাদের কী কথোপকথন হয়েছে তা জানতে তুলির মোবাইল ফোন সিআইডির ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। এ কাজ শেষ করতে সময় লাগবে।

রাজধানীর রায়েরবাজারের মিতালী রোডের বাসা থেকে গত ১৩ জুলাই দুপুরে সোহানা পারভীন তুলির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে হাজারীবাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন তুলির ভাই মোহাইমেনুল ইসলাম।

হাজারীবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনও ময়নাতদন্ত ও মোবাইল ফোনের ফরেনসিক রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া যাবে।’

রিপোর্ট পেতে কত সময় লাগতে পারে সে বিষয়ে নিশ্চিত নন পুলিশের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রায়োরটি দিয়ে রিপোর্টগুলো আনার চেষ্টা করছি। তবে সিআইডিতে সারা দেশের বিষয়গুলো আসে। এ কারণে রিপোর্ট পেতে সময় লাগে। মেডিক্যাল রিপোর্ট পেতেও সময় লাগবে।’

ঘটনার পর তুলির বাসার দারোয়ান একটি মোটরসাইকেলের নম্বর পুলিশকে দেন। তার সূত্র ধরেই পুলিশ রফিকুল ইসলাম রঞ্জুকে শনাক্ত করে। তুলির সঙ্গে সম্পর্ক ও নিয়মিত যোগাযোগ থাকার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন রঞ্জু। তবে আত্মহত্যা প্ররোচনার অভিযোগ তিনি স্বীকার করেননি।

আরও পড়ুন: প্রাণোচ্ছল, পরোপকারী তুলির মনে কী দুঃখ ছিল

হাজারীবাগ থানার ওসি মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রঞ্জুকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে। দীর্ঘ সময়ের জন্য ঢাকার বাইরে কোথাও গেলে আমাদের অবহিত করতে বলেছি। তদন্তের প্রয়োজনে আবার ডাকলে তাকে আসতে হবে।’

মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট ডিএমপি রমনা বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, তুলির সঙ্গে সাংবাদিক রঞ্জুর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। মোবাইল ফোনে তাদের নিয়মিত যোগাযোগ হতো এবং তুলির বাসায়ও রঞ্জু প্রায়ই যাতায়াত করতেন। ঘটনার আগের দিন বিকেল ৩টা ৯ মিনিটে রঞ্জুকে তুলি মেসেজ পাঠিয়েছিলেন। এক লাইনের মেসেজে লেখা ছিল, ‘আজকে তুই মরার খবর পাবি’।

তিনি বলেন, ‘রঞ্জুকে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সম্পর্কের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে তুলির পাঠানো মেসেজটি তিনি না দেখেই ডিলিট করে দেন বলে দাবি করেছেন।’

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই
সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রঞ্জুর বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগ তুলেছে তুলির পরিবার

তুলির ভাই মোহাইমেনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, আপুকে আত্মহত্যার দিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমরা তথ্য-প্রমাণের জন্য অপেক্ষা করছি। আপুর ফোন সিআইডির কাছে আছে। তাদের রিপোর্ট পেলে অনেক কিছুই বেরিয়ে আসবে। আমরা চাই, পুলিশ তদন্ত করে সত্য বের করে আনুক। আমরা ঘটনার বিচার চাই।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তুলির সাবেক এক সহকর্মী বলেন, ‘রঞ্জু মোবাইলে মেসেজ পেয়ে তুলিকে ফেরানোর চেষ্টা করলে আজ হয়তো সে বেঁচে থাকত। নিশ্চয়ই ওদের মধ্যে এমন কিছু হয়েছে, যাতে তুলি এমন কথা লিখে মেসেজ করেছে। তাদের মধ্যে কী হয়েছিল, কেন তুলি আত্মহত্যার পথ বেছে নিল, তা তদন্তে বেরিয়ে আসা উচিত।‘

তুলির ফোনে পাঠানো মেসেজ ও সম্পর্কের বিষয়ে জানতে চাইলে রফিক রঞ্জু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না কী কারণে সে এ ধরনের মেসেজ দিয়ে থাকতে পারে। একটা ভালো সম্পর্ক ছিল, কোনো ধরনের ঝগড়া বা এ ধরনের কোনো কিছু আমার সঙ্গে ওর হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘মেসেজটি আমি দেখিনি। এরপর আর কোনো কথাও হয়নি। পরদিনই তো খবরটা পাইছি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী সোহানা তুলি এক দশকের বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতায় জড়িত ছিলেন। সবশেষ ২০২১ সালের মে মাস পর্যন্ত তিনি অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউনে কর্মরত ছিলেন। এরপর কয়েক মাস সেন্টার ফর কমিউনিকেশন অ্যাকশন বাংলাদেশ নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছিলেন।

বাংলা ট্রিবিউনের আগে তিনি কাজ করেছেন দৈনিক কালের কণ্ঠ ও দৈনিক আমাদের সময়ে।

সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রঞ্জু সবশেষ কর্মরত ছিলেন দৈনিক সমকালে। তুলির ঘটনার পর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন।

আরও পড়ুন:
লাশ নিয়ে ‘ঘুষখোরের’ বাড়িতে, ফেরত এলো ৬ লাখ টাকা
এজিবি কলোনিতে ফ্যানে ঝুলছিল স্কুলছাত্রীর দেহ
অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে গেল প্রাণ
‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’
সাংবাদিক মারধরে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bulkhead sinking in Sandhya River Body of missing skipper recovered

সন্ধ্যায় বাল্কহেডডুবি: ৪ দিন পর মিলল মরদেহ

সন্ধ্যায় বাল্কহেডডুবি: ৪ দিন পর মিলল মরদেহ প্রতীকী ছবি
সোমবার রা‌তে উজিরপুরের মী‌রের হা‌টসংলগ্ন সন্ধ্যা নদীতে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ‘এমভি মর্নিং সান-৯’ লঞ্চে ধাক্কা দিয়ে ডুবে যায় বালুবাহী বাল্কহেডটি। এতে নিখোঁজ হন শ্রমিক কালাম ও সুকানি মিলন। দুই জনেরই মরদেহ উদ্ধার হয়েছে।

ব‌রিশালের সন্ধ্যা নদীতে বাল্কহেড ডুবির চার দিন পর নিখোঁজ সুকানির মরদেহ উদ্ধার হয়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল শুক্রবার বিকেলে ডু‌বে যাওয়া বাল্কহেডের ভেতর থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে। এর আগে মঙ্গলবার সকালে নদীর খেজুরবাড়ি পয়েন্ট থেকে নিখোঁজ কালামের মরদেহ উদ্ধার করেন স্থানীয়রা।

বানারীপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাকসুদ আলম চৌধুরী নিউজবাংলাকে মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মৃত সুকানি মিলন হাওলাদার পিরোজপুরের স্বরূপকাঠী উপজেলার সুটিয়াকাঠি ইউনিয়নের নান্দুহার গ্রামের বাদশা মিয়ার ছেলে।

ওসি বলেন, ‘শুক্রবার সকাল থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দল মিলনের খোঁজে ডুবে যাওয়া বাল্কহেডে তল্লাশি চালায়। বিকেল ৪টার দিকে বাল্কহেডের ভেতর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে।’

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

সোমবার রা‌ত ৯টার দিকে উজিরপুরের মী‌রের হা‌টসংলগ্ন সন্ধ্যা নদীতে পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী ‘এমভি মর্নিং সান-৯’ লঞ্চে ধাক্কা দিয়ে ডুবে যায় বালুবাহী বাল্কহেডটি। এতে নিখোঁজ হন শ্রমিক কালাম ও সুকানি মিলন।

বাল্কহেডের ধাক্কায় ফেটে যায় লঞ্চের তলাও। পরে লঞ্চটিকে উজিরপুরের বড়াকোঠা ইউনিয়নের চৌধুরীর হাট ঘাটে নোঙর করা হয়।

ঘটনার পর ল‌ঞ্চের যাত্রী জিয়াউর নিউজবাংলাকে ব‌লেন, ‘আমরা ল‌ঞ্চের ছা‌দে ছিলাম। লঞ্চ‌টিও দ্রুতগ‌তি‌তে চল‌ছি‌ল। এর ম‌ধ্যে দেখ‌তে পাই আড়াআড়িভা‌বে আসা বালুবা‌হী একটা বাল্ক‌হেড থে‌কে সেটার মাস্টার লাইট মে‌রে সিগন্যাল দিচ্ছিলেন।

এ সময় লঞ্চ ও বাল্ক‌হেডটি প্রায় একই গতিতে চলছিল জানিয়ে এই যাত্রী বলেন, ‘একপর্যায়ে বাল্ক‌হেড‌টি ল‌ঞ্চের মাঝখা‌নে ধাক্কা দেয়। এ‌তে বাল্ক‌হেড‌টি ডু‌বে যায়।’

পরদিন মঙ্গলবার সকালে বানারীপাড়া উপজেলাধীন সন্ধ্যা নদীর খেজুরবাড়ি পয়েন্ট থেকে ৫৫ বছরের কালাম সাইজু‌দ্দিনের মরদেহ উদ্ধার করেন স্থানীয়রা।

আরও পড়ুন:
বাল্কহেডডুবি: নিখোঁজ ১ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police case against 24 leaders of Juba Dal Chhatra Dal

যুবদল-ছাত্রদলের ২৪ নেতার নামে পুলিশের মামলা

যুবদল-ছাত্রদলের ২৪ নেতার নামে পুলিশের মামলা সংঘর্ষের চিত্র। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
মামলায় যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ২৪ নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় ২০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ফেনীতে বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের নামে মামলা করেছে পুলিশ। ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় ২০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ফেনী মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সিরাজ মিয়া শুক্রবার রাতে বিস্ফোরক আইনে মামলাটি করেন।

একই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন নিউজবাংলাকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলায় ফেনী জেলা যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বেলাল হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সালাহ উদ্দিন মামুন, সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ আলম মিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন রিয়াদ, ফেনী পৌর সদস্য সচিব ইব্রাহিম হোসেন ইভুসহ যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ২৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

জ্বালানি তেল ও নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে বিএনপি। বিকেলের দিকে শহরের ইসলাম রোড থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি ট্রাংক রোডের জিরো পয়েন্টের দিকে যাওয়ার সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা মিছিলকারীদের ধাওয়া দেন। একপর্যায়ে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ায়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে পুলিশ। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলা এ সংঘর্ষে পথচারীসহ অন্তত ১০ জন আহত হন।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ
বিএনপি-ছাত্রলীগ সংঘর্ষে আহত ৩০
ভোলায় সংঘর্ষ: নিহত ছাত্রদল নেতার দেহে গুলির চিহ্ন
দুই কর্মী নিহত: ভোলায় বিএনপির ব্যাপক বিক্ষোভ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Salman Rushdie was stabbed 10 15 times in 20 seconds

সালমান রুশদিকে ২০ সেকেন্ডে ১০-১৫ বার ছুরিকাঘাত

সালমান রুশদিকে ২০ সেকেন্ডে ১০-১৫ বার ছুরিকাঘাত নিউ ইয়র্কে একটি অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেয়ার সময় হামলা হয় সালমান রুশদির ওপর। ছবি: সংগৃহীত
রাব্বি চার্লস নামের একজন বলেন, ‘প্রথমে বুঝতে পারিনি কী ঘটছে। কয়েক সেকেন্ড পর বিষয়টি বুঝতে পারি। হামলাটি প্রায় ২০ সেকেন্ড স্থায়ী হয়েছিল।

সালমান রুশদিকে ২০ সেকেন্ডে ১০ থেকে ১৫ বার আঘাত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা। দৃশ্যটা এতটাই নাটকীয় ছিল যে উপস্থিত দুই হাজারের বেশি দর্শক শুরুতে এটিকে ‘স্টান্ট’ ভেবেছিল।

নিউ ইয়র্কে একটি অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেয়ার সময় স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় হামলার শিকার হন লেখক সালমান রুশদি। তাকে হাসপাতালে নেয়া হলেও অবস্থা সম্পর্কে এখনও কিছু জানা যায়নি।

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে রাব্বি চার্লস নামের একজন বলেন, ‘প্রথমে বুঝতে পারিনি কী ঘটছে। কয়েক সেকেন্ড পর বিষয়টি বুঝতে পারি। হামলাটি প্রায় ২০ সেকেন্ড স্থায়ী হয়েছিল।’

এপির একজন সাংবাদিক জানিয়েছেন, হামলাকারী রুশদিকে ১০ থেকে ১৫ বার ঘুষি বা ছুরিকাঘাত করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী একজন ক্যাথলিন জোনস। তিনি বলেন, ‘হামলাকারী কালো পোশাকে ছিলেন, মুখ কালো কাপড়ে ঢাকা ছিল। আমরা ভেবেছিলাম সম্ভবত এটি একটি স্টান্টের অংশ। তবে কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে বিষয়টা স্পষ্ট যায়।’

এপি বলছে, হামলার পর রুশদি তৎক্ষণাৎ মেঝেতে পড়ে যান। তখন হামলাকারী শান্ত হয়। আশপাশের লোকজন ছুটে এসে লেখককে ঘিরে ফেলেন। অনুষ্ঠানে আনুমানিক আড়াই হাজার লোক উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে নিউ ইয়র্ক টাইমসকে এক প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ‘রুশদিকে মুহূর্তের মধ্যে বেশ কয়েকবার আঘাত করা হয় এবং তিনি তার রক্তের ওপরই লুটিয়ে পড়েন।’

ঘটনার পরই রিটা ল্যান্ডম্যান নামের একজন সহযোগিতার জন্য এগিয়ে গিয়েছিলেন এই বলে যে, তাকে জীবিত মনে হচ্ছে এবং তার সিপিআর প্রয়োজন।

ল্যান্ডম্যান বলেন, ‘লোকজন বলাবলি করছিল, তার এখনও নাড়ির স্পন্দন আছে, নাড়ির স্পন্দন আছে...।’

হামলাটির মুহূর্তে সামনের সারিতেই বসেছিলেন ওহিওর ক্লিভল্যান্ডের বাসিন্দা রজার ওয়ার্নার। তিনি বলেন, ‘তিনি (রুশদি) রক্তে ভেসে যাচ্ছিলেন। আর মেঝেতে রক্তের স্রোতধারা বইছিল।

‘আমি শুধু তার চোখের চারপাশে রক্ত দেখছিলাম, যা তার গাল বেয়ে নেমে যাচ্ছিল।’

নিউ ইয়র্ক স্টেট পুলিশ ছুরিকাঘাতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। তারা জানিয়েছে, রুশদিকে হেলিকপ্টারে কাছের একটি হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। হামলাকারী তাদের হেফাজতে আছে।

নিউ ইয়র্কের গভর্নর ক্যাথি হোচুল টুইটে বলেন, ‘আমরা সালমান (রুশদি) এবং তার প্রিয়জনদের পাশে আছি। তদন্তে সব ধরনের সহায়তা করা হবে।’

আরও পড়ুন:
নিউ ইয়র্কে সালমান রুশদির ঘাড়ে ছুরিকাঘাত, হামলাকারী আটক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
How the mother took the decision to sell her son

ছেলেকে বিক্রির সিদ্ধান্ত যেভাবে নিলেন মা

ছেলেকে বিক্রির সিদ্ধান্ত যেভাবে নিলেন মা ছোট ছেলে রামকৃষ্ণকে নিয়ে পৈত্রিক ভিটায় একটি গোয়ালঘরের পাশেই থাকেন সোনালী চাকমা।
ছেলেকে বাজারে বিক্রি করে দিতে চেয়েছিলেন মা- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন একটি পোস্ট ভাইরাল হলে আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে দেশজুড়ে। বিষয়টি সম্পর্কে আরও গভীরভাবে জানতে উদ্যোগ নেয় নিউজবাংলাও।

ঘটনাটি কি সত্য?

সন্তানকে বিক্রি করে দিতে বাজারে তুলেছেন মা- এমন শিরোনামে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবরটি প্রকাশিত হওয়ার পর এ নিয়ে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা। নিজের মা সন্তানকে বিক্রি করতে চাইছেন, তা অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না। বিষয়টির সত্যাসত্য জানতেও আগ্রহী ছিলেন আরও অনেকেই।

এ বিষয়ে খোঁজ নিতেই শুক্রবার নিউজবাংলা গিয়ে হাজির হয় খাগড়াছড়ি সদরের ভাইবোন ছড়া ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের পাক্কুজ্যছড়ি গ্রামে। সেখানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রতিবেশী ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়- ছেলেকে বিক্রি করতে বাজারে তোলার ঘটনাটি সত্য।

অভাব অনটনের সংসারে ছেলেকে ঠিকমতো খাবার ও ভরণপোষণ দিতে পারছিলেন না সোনালী চাকমা। তবে তার সিদ্ধান্তে স্বজন ও স্থানীয়রা হতবাক।

এদিকে শুধু অভাব নয়, সোনালী চাকমার কিছু অস্বাভাবিক আচরণের কথাও জানিয়েছেন তার পরিচিত মানুষেরা।

তারা জানান, ৪৭ বছরের সোনালী চাকমার স্বামী শতোর্ধ্ব এবং পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন। সোনালীর তিন ছেলের মধ্যে বড় দুই ছেলের একজন বিয়ে করে আলাদা আর মেঝো ছেলে খাগড়াছড়ি সদরে দিনমজুরের কাজ করেন।

ছোট ছেলে রামকৃষ্ণকে নিয়ে পৈত্রিক ভিটায় একটি গোয়ালঘরের পাশেই থাকেন সোনালী। বাবা, মা ও ভাইয়ের বাড়ি পাশাপাশি হলেও অভাব অনটনে কেউই তার খোঁজ রাখে না। এ অবস্থায় দিনমজুরি করে যা আয় হয়, তা দিয়ে সোনালীর সংসারও চলে না।

এর মধ্যেই দীর্ঘদিন ধরে মৃগী রোগে ভোগছেন তিনি। কিন্তু ছেলের মুখেই খাবার তুলে দিতে না পারা সোনালীর জন্য মৃগী সহ অন্যান্য রোগের ওষুধ কিনে খাওয়া অসম্ভব হয়ে দাঁড়ায়। নানা প্রচেষ্টার পরও চিকিৎসা নিতে না পেরে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন তিনি।

এরই ধারাবাহিকতায় গত বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি সদরের বাজারে নিয়ে ছেলেকে বিক্রি করে দিতে দর হাঁকেন সোনালী।

ছেলেকে ছেড়ে থাকতে অনেক কষ্ট হবে জানিয়ে অভাব ঘুচাতে তাকে বিক্রির চেষ্টা অকপটে স্বীকার করেন সোনালী নিজেও। এ সময় কেঁদে ওঠেন তিনি।

সোনালী চাকমার ভাই ভারতব চাকমা বলেন, ‘দিদি (সোনালী) মানসিকভাবে কিছুটা ভারসাম্যহীন। মৃগী রোগী। এ জন্য মাঝেমাঝে এলোমেলো কথা ও কাজ করেন। গত বৃহস্পতিবার খাগড়াছড়ি বাজার থেকে এক চেয়ারম্যান ফোন করে ছেলেকে বিক্রি চেষ্টার কথা জানালে বাবা গিয়ে দিদি ও ভাগিনাকে নিয়ে আসেন।’

এ সময় নিজেরদের অভাবের কারণে সোনালীর চিকিৎসা করাতে পারেন না বলেও আক্ষেপ করেন ভারতব।

যেভাবে জানাজানি হয় ঘটনাটি

বৃহস্পতিবার সকালে খাগড়াছড়ি বাজারে এসে সবজি বিক্রি করতে আসা কয়েক নারীর কাছে ছেলেকে বিক্রির প্রস্তাব দেন সোনালী। তাদের মধ্যে একজন তার ছেলেকে ৫ হাজার টাকায় কিনতে চান। কিন্তু সোনালী ১২ হাজার টাকার কমে বিক্রি করবেন না বলে জানিয়ে দেন।

এভাবে দর কষাকষির এক পর্যায়ে সদর উপজেলার কমলছড়ি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সুনীল জীবন চাকমা বিষয়টি জানতে পারেন। পরে তার হস্তক্ষেপে মা ও ছেলেকে উদ্ধার করে পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়।

মা-ছেলের বর্তমান অবস্থা

ভাইবোন ছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ানম্যান সুজন চাকমা জানান, তিনি ব্যক্তিগতভাবে ওই মা-ছেলের পাশে দাড়াঁনোর পাশাপাশি শিশুটিকে একটি সদনে থাকার ব্যবস্থা করতে চেষ্টা করছেন।

সংরক্ষিত আসনের সাংসদ বাসন্তী চাকমা জানান, পরিবারটির জন্য ৬ মাসের খাদ্য শস্য ও নগদ কিছু টাকা দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া সদর ইউএনও-কে বলে একটি সরকারি ঘরের ব্যবস্থা করা হবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

খাগড়াছড়ির সিভিল সার্জন ডা. মো. ছাবের জানান, মৃগী রোগীদের মানসিক সমস্যা হতে পারে। তবে বর্তমানে সময়মতো চিকিৎসা নিলে তা অনেকটাই ভালো হয়ে যায়।

তিনি জানান, জেলা সদর হাসপাতালে এই রোগে ভালো ও বিনামূল্যে চিকিৎসা হয়। সোনালী চাইলে তাকে স্বাস্থ্য বিভাগ সহযোগিতা দেবে।

আরও পড়ুন:
সন্তান হত্যা মামলায় পলাতক মা গ্রেপ্তার
বাসে সন্তান জন্ম, মা ও শিশুর ভাড়া আজীবন ফ্রি
শিশু ফেরত পেতে হাইকোর্টে ভারতীয় মা
শিশুকে নিয়ে বাবার দেশত্যাগ: দাদাকে হাইকোর্টে তলব
পিতামাতার দায় অস্বীকারের সুযোগ নেই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Jannatul went to the hotel with Rezaul

‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’

‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’ রেজাউল করিম ও জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। ছবি: সংগৃহীত
রাজধানীর পান্থপথের ‘ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট’ নামের হোটেল থেকে বুধবার রাতে মরদেহটি উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ। ২৭ বছর বয়সী ওই চিকিৎসকের নাম জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। তিনি ঢাকা কমিউনিটি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে এমবিবিএস করেছেন। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একটি কোর্সে পড়ছিলেন।

রাজধানীর পান্থপথের ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট নামের আবাসিক হোটেলে বুধবার সকাল ৮টায় আসেন ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা রেজাউল করিম। সঙ্গে ছিলেন সদ্য এমবিবিএস পাশ করা জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। হোটেলের কক্ষটি বাইরে থেকে তালা দিয়ে সাড়ে ১০টার দিকে বেরিয়ে যান রেজাউল। এরপর তিনি ফিরে আসেননি।

হোটেলটি থেকে বুধবার রাতে জান্নাতুলের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ। এরপর খোঁজ শুরু হয় রেজাউলের। অনুসন্ধানের এক পর্যায়ে র‍্যাব চট্টগ্রাম মহানগরী থেকে রেজাউলকে গ্রেপ্তার করে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তবে জান্নাতুলকে হত্যার কারণসহ রহস্যজট কাটেনি প্রাথমিক তদন্তে।

হোটেল স্টাফদের দেয়া তথ্য ও ফুটেজ বিশ্লেষনে জানা যায়, রেজাউল ও জান্নাতুল হোটেলের চতুর্থ তলার ৩০৫ নম্বর কক্ষে ছিলেন। রেজাউল বের হয়ে যাওয়ার পর কক্ষটি দীর্ঘ সময় বাইরে থেকে তালাবদ্ধ ছিল। দীর্ঘসময় কক্ষ তালাবদ্ধ দেখে রাত ৯টার দিকে কলাবাগান থানা পুলিশকে খবর দেয় হোটেল কর্তৃপক্ষ। পরে পুলিশ ওই কক্ষের বিছানা থেকে গলাকাটা অবস্থায় জান্নাতুলের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা শফিকুল আলম কলাবাগান থানায় মামলা করেছেন। আসামি করা হয়েছে রেজাউল ও অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের। জান্নাতুলকে কেন হত্যা করা হয়েছে, সে ব্যাপারে ধারণা দিতে পারেননি স্বজনরা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রেজাউল করিম রেজাকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে র‍্যাব জান্নাতুল হত্যার বিস্তারিত তথ্য জানাবে।

পুলিশ জানিয়েছে, মরদেহ উদ্ধারের পর ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্টের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষন করা হয়। ওই হোটেলের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ভিকটিম ও আসামি ঘটনার আগেরদিনও স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে হোটেলে যান। তারা বেলা ১টা থেকে বিকেল ৫ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করেন। বুধবার সকাল আটটায় তারা আবার যান সেখানে। কিন্তু দুই ঘণ্টা পর একা বেরিয়ে যান রেজাউল।

কলাবাগান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, বুধবার সকাল ৮টা থেকে ১০টার মধ্যে নারী চিকিৎসককে হত্যা করা হয় বলে ধারণা মিলেছে। তবে কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে, তা জানা যায়নি। রেজাউলের সঙ্গে জান্নাতুল দুই দফা হোটেলটিতে যান, সে বিষয়ে প্রমাণ মিলেছে।

‘রেজাউলকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে হত্যার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। এ দুজনের রুমে ঢোকার পর অন্য কাউকে সেখানে যেতে দেখা যায়নি। রেজাউল কক্ষটি বাইরে থেকে তালাবদ্ধ করে বেরিয়ে যান।’

নিহত জান্নাতুলের গ্রামের বাড়ি নরসিংদী, রেজাউল করিমের বাড়ি কক্সবাজার। তাদের দুজনের সম্পর্ক পরিবার মেনে নেয়নি বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে জান্নাতুলের মরদেহ তার গ্রামের বাড়িতে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
নারী চিকিৎসক হত্যায় যুবক আটক
রাজধানীর হোটেলে নারী চিকিৎসকের গলা কাটা দেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
RAB air wing directors first funeral held

র‌্যাবের এয়ার উইং পরিচালকের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত

র‌্যাবের এয়ার উইং পরিচালকের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত সিঙ্গাপুর থেকে র‌্যাব কর্মকর্তা ইসমাইলের মরদেহ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে আসে বুধবার সন্ধ্যায়। ছবি: নিউজবাংলা
রাজধানীর কালশীর বাইতুর রহমান জামে মসজিদে বুধবার রাত সোয়া ৯টার দিকে র‌্যাব কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেনের প্রথম জানাজা হয়। এর আগে সন্ধ্যা ৭টার দিকে সিঙ্গাপুর থেকে ইসমাইলের মরদেহ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এসে পৌঁছায়।

হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সিঙ্গাপুরে হাসপাতালে মৃত্যু হওয়া র‍্যাবের এয়ার উইং পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মোহাম্মদ ইসমাইল হোসেনের প্রথম জানাজা হয়েছে।

রাজধানীর কালশীর বাইতুর রহমান জামে মসজিদে বুধবার রাত সোয়া ৯টার দিকে তার জানাজা হয়।

এর আগে সন্ধ্যা ৭টার দিকে সিঙ্গাপুর থেকে ইসমাইলের মরদেহ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এসে পৌঁছায়।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখা থেকে জানানো হয়, বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় র‍্যাব সদরদপ্তরে ইসমাইলের দ্বিতীয় জানাজা হবে। সে জানাজায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপি, র‍্যাবের মহাপরিচালক ও অন্যান্য জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত থাকবেন।

জোহরের নামাজের পর ঢাকা সেনানিবাস কেন্দ্রীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে ইসমাইলের তৃতীয় জানাজা হবে। সে জানাজা শেষে তার মরদেহ বনানীর সামরিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

গত ২৭ জুলাই ঢাকার নবাবগঞ্জে প্রশিক্ষণ চলাকালে হেলিকপ্টার দুর্ঘটনার শিকার হন র‌্যাবের এয়ার উইং পরিচালক ৫৪ বছর বয়সী ইসমাইল হোসেন। তাকে শুরুতে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) ভর্তি করা হয়।

পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৫ আগস্ট সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ইসমাইলকে। ৬ আগস্ট তার মেরুদণ্ডের সফল অস্ত্রোপচার হয়, কিন্তু অন্যান্য শারীরিক জটিলতায় তার অবস্থার অবনতি ঘটে। ৯ আগস্ট আইসিইউতে তার মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
মহাসড়কে ডাকাতি: ঠান্ডা-শামীম বাহিনীর ১১ জন গ্রেপ্তার
র‍্যাবের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে যুক্তরাষ্ট্রের শর্ত
যুক্তরাষ্ট্রে নাগরিকের নিরাপত্তা কমছে
র‍্যাবকে মারধর: এখনও অস্বাভাবিক সেই বাজার
র‌্যাবকে মারধর: ৩ দিন পর ৩ মামলা

মন্তব্য

p
উপরে