× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
22 were killed on the highway on the return journey of Eid
hear-news
player
print-icon

ঈদের ফিরতি যাত্রায় মহাসড়ক ভয়ংকর, নিহত ২৬

ঈদের-ফিরতি-যাত্রায়-মহাসড়ক-ভয়ংকর-নিহত-২৬
বিভিন্ন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় শনিবার ভোর থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত ২৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

কোরবানির ঈদ শেষে রোববার থেকে পুরোপুরি সচল হচ্ছে কর্মক্ষেত্র। আর তাই আগের দিন শনিবার সারা দেশ থেকে ঢাকামুখী যানবাহনের প্রচণ্ড চাপ মহাসড়কে। ঈদের আগে-পরে কয়েক দিন সড়ক অনেকটা নিরাপদ থাকলেও শনিবার ভোর থেকে যেন শুরু হয়েছে মৃত্যুর মিছিল।

বিভিন্ন জেলায় সড়ক দুর্ঘটনায় বিকেল ৫টা পর্যন্ত ২৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন অন্তত ২৫ জন।

প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে নিউজবাংলার জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো তথ্য অনুযায়ী।

ময়মনসিংহ: জেলার ত্রিশালে ট্রাকের চাপায় শিশুসন্তানসহ স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। আর ঘটনাস্থলেই নিহত নারীর গর্ভে থাকা সন্তান ভূমিষ্ঠ হলে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় শনিবার বেলা সোয়া ৩টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা উপজেলার ত্রিশাল ইউনিয়নের রায়মনি এলাকার বাসিন্দা। তবে তাৎক্ষণিক তাদের পরিচয় শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

ঈদের ফিরতি যাত্রায় মহাসড়ক ভয়ংকর, নিহত ২৬

ত্রিশাল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. নাজমুল আমিন নিউজবাংলাকে বলেন, ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দ্রুতগতির একটি ট্রাক ময়মনসিংহের দিকে আসছিল। বেলা সোয়া ৩টার দিকে ত্রিশালের কোর্ট বিল্ডিং এলাকায় আসতেই সড়কের পাশে দাঁড়িয়ে থাকা এক দম্পতিসহ তাদের সাত বছর বয়সী ছেলেকে চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই স্বামী-স্ত্রী নিহত হন।

এ সময় নিহত নারীর গর্ভে থাকা সন্তান ভূমিষ্ঠ হলে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। আর দম্পতির আহত শিশুটিকে হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। নবজাতক হাতে আঘাত পেলেও এখনও সুস্থ আছে।

সিরাজগঞ্জ: হাটিকুমরুল-বনপাড়া মহাসড়কে উপজেলার খালকুলা দবিরগঞ্জ এলাকায় শনিবার দুপুর ১টার দিকে বাস ও দুটি ট্রাকের ত্রিমুখী সংঘর্ষে বাসের তিন যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন একজন।

হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লুৎফর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তাৎক্ষণিক হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।

ওসি বলেন, ‘দুপুরের দিকে ঢাকাগামী একটি বাস খালকুলা দবিরগঞ্জ এলাকায় পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাকের সঙ্গে সংঘর্ষ ঘটে। এ সময় পেছনে থাকা আরও একটি ট্রাক এসে ধাক্কা দেয়।

‘এতে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। মরদেহ উদ্ধার করে হাইওয়ে থানায় নেয়া হয়েছে।’

পুলিশ আহত ব্যক্তিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছে।

বগুড়া: কাহালুর দরগাহাটের কালিয়ারপুকুর এলাকায় শনিবার সকালে পিকআপের ধাক্কায় প্রাইভেট কারের চারজন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন একজন।

কাহালু ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের স্টেশন অফিসার রুবেল রানা নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

নিহতরা হলেন আব্দুর রহমান, টগর, তানসেন আলী ও প্রাইভেট কারের চালক। তাদের মধ্যে আব্দুর রহমানকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান। আহত শাকিলকে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

টাঙ্গাইল: মির্জাপুরে বিকল ট্রাকের পেছনে বাসের ধাক্কায় নিহত হয়েছেন চার যাত্রী। আহত হয়েছেন বাসের আরও পাঁচ যাত্রী। উপজেলার ধুল্যা মুনসুর এলাকায় শনিবার ভোরে এ দুর্ঘটনাটি ঘটে।

এ ঘটনার পর মির্জাপুরে ফের প্রাণ হারান মাসহ দুই শিশু।

ঈদের ফিরতি যাত্রায় মহাসড়ক ভয়ংকর, নিহত ২৬

গোড়াই হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা টুটুল জানান, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের মির্জাপুর উপজেলার পাকুল্যা এলাকায় রাস্তা পার হওয়ার সময় শনিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন মির্জাপুর উপজেলার বাঁশতৈল এলাকার মাসুদ মিয়ার স্ত্রী ৩৫ বছরের পারভীন বেগম, তার ছেলে ১০ বছরের সুমন ও মেয়ে ৮ বছরের সাদিয়া।

ঝিনাইদহ: কালীগঞ্জ উপজেলার পিরোজপুর এলাকায় শনিবার সকালে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারান ৮০ বছরের লোকমান হোসেন। উপজেলার খোসালপুর গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন তিনি।

কালীগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মেজবাহ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, সকালে বাড়ি থেকে সবজি নিয়ে আলমসাধুতে করে অন্যদের সঙ্গে উপজেলার বারোবাজার যাচ্ছিলেন কৃষক লোকমান। পথে ঘটনাস্থলে পৌঁছালে পেছন দিক থেকে আসা একটি ট্রাক আলমসাধুটিকে ধাক্কা দেয়। এতে রাস্তায় ছিটকে পড়েন লোকমান হোসেনসহ আরও চারজন। গুরুতর আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় ক্লিনিকে নেয়া হলে লোকমান মারা যান।

আহতদের যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছেন ওসি।

চট্টগ্রাম: ফটিকছড়িতে পিকআপ ভ্যানের চাপায় সিএনজিচালিত অটোরিকশার এক যাত্রী নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন নিহতের ছেলেসহ আরও তিনজন।

উপজেলার মির্জারহাট কোটবাড়িয়া এলাকায় শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শারমিন আক্তার ভুজপুর থানার শৈলকুপা এলাকার আবু তাহেরে স্ত্রী। আহতরা হলেন শারমিন আক্তারের ৯ বছর বয়সী ছেলে মোবারক হোসেন, ১২ বছর বয়সী ভাগনি শম্পা কলি এবং অটোরিকশার চালক।

ভুজপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুমন বলেন, ‘উপজেলার রামগড় সড়কে নারায়ণহাটমুখী একটি অটোরিকশাকে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি পিকআপ ভ্যান চাপা দিলে চার যাত্রী আহত হন।

‘তাদের উদ্ধার করে ফটিকছড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে চিকিৎসক শারমিনকে মৃত ঘোষণা করেন। বাকিদের চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।’

ঈদের ফিরতি যাত্রায় মহাসড়ক ভয়ংকর, নিহত ২৬

গাজীপুর: পুবাইলে আলাদা সড়ক দুর্ঘটনায় দুজনের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার ভোর ৪টায় পুবাইলের কলেজ গেট এলাকায় ট্রাকের চাপায় নিহত হন লেগুনার এক যাত্রী। আহত হন সাতজন।

অন্যদিকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শুকুন্দিরবাগ এলাকায় দুই অটোরিকশার সংঘর্ষে নিহত হন এক যাত্রী।

নিহতরা হলেন শেরপুর জেলার মাঝপাড়া থানার গোলাম রাব্বানীর ছেলে মনিরুজ্জামান মনির ও নরসিংদী জেলার মনোহরদী থানার কেরানীনগর গ্রামের মৃত ইদ্রিস আলীর ছেলে ইব্রাহিম হোসেন।

পুবাইল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কাশেম বলেন, শনিবার ভোরে কলেজ গেট এলাকায় সিলেট থেকে ঢাকাগামী পাথরবোঝাই একটি ট্রাক লেগুনাকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলেই এক যাত্রী মারা যান। আহত অবস্থায় সাত যাত্রীকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

নীলফামারী: নীলফামারীর জলঢাকায় ভ্যানে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন একজন।

জলঢাকা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নুরুল হক জানান, শনিবার সকাল ১০টার দিকে টেঙ্গনমারী-মীরগঞ্জ সড়কের কিসামত বটতলা বাজারে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, সকালে ভ্যানে সবজি নিয়ে টেঙ্গনমারী বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন ৪৫ বছরের আজিজুল হক। এ সময় একটি ট্রাক যাওয়ার সময় ভ্যানটিকে ধাক্কা দিলে ছিটকে পড়ে ঘটনাস্থলে মারা যান আজিজুল। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

নিহত আজিজুলের বাড়ি জলঢাকা উপজেলার আরাজি কাঁঠালি বালাপাড়া এলাকায়।

হবিগঞ্জ: জেলার নবীগঞ্জে বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে তিন জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন দুজন।

শনিবার বিকেল ৫টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের নবীগঞ্জের রুস্তমপুর টোল প্লাজার সামনে এই ঘটনা ঘটে।

নবীগঞ্জ থানার ওসি মো. ডালিম আহমেদ এ ঘটনা নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন, নবীগঞ্জের আউশকান্দি ইউনিয়নের বেতাপুর গ্রামের আবুল হোসেন চৌধুরীর স্ত্রীর বকুল বেগম, ছাত্রদল নেতা এহিয়া চৌধুরী জাবেদ এবং দৌলপুর গ্রামের সিএনজি অটোরিকশার চালক রব্বান মিয়া।

ওসি জানান, মিতালি পরিবহনের একটি বাস সিলেট যাচ্ছিল। নবীগঞ্জের রুস্তমপুর টোল প্লাজার সামনে বাসটির সঙ্গে একটি সিএনজি অটোরিকশার সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই অটোরিকশার এক যাত্রী নিহত হন।

আহতদের নবীগঞ্জ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পর আরও দুই জন মারা যান।

রাজশাহী: জেলার মোহনপুরে বাসচাপায় জুয়েল হোসেন নামে এক পুলিশ কনস্টেবল নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন তার স্ত্রী সুলতানা রুমা।

শনিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার সাঁকোয়া গ্রামে রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের টার্নিং পয়েন্টে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

৩১ বছর বয়সী জুয়েল হোসেনের বাড়ি নওগাঁর মান্দা উপজেলার তেতুলিয়া ইউনিয়নের কুরকুটি গ্রামে। তিনি বগুড়ার আদমদিঘি থানায় কনস্টেবল পদে কর্মরত ছিলেন। ঈদের ছুটি শেষে তারা কর্মস্থলে ফিরছিলেন।

গুরুতর আহত সুলতানা রুমাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানিয়েছে, জুয়েল হোসেন মোটরসাইকেলে স্ত্রীকে নিয়ে নওগাঁ থেকে রাজশাহী ফিরছিলেন। মোহনপুরের সাঁকোয়া গ্রামে একটি বাস তাদের চাপা দেয়। এতে জুয়েল ঘটনাস্থলে নিহত হন।

কেশরহাট তেল পাম্পের সামনে বাস রেখে বাসচালক পালিয়ে গেছেন। পরে মোহনপুর থানা পুলিশ বাসটি জব্দ করে থানায় নেয়।

মোহনপুর থানার ওসি তৌহিদুল ইসলাম জানান, বাসটি থানায় নেয়া হয়েছে। চালককে আটকের চেষ্টা চলছে।

আরও পড়ুন:
দুই বাসের সংঘর্ষে নিহত ৩
প্রাইভেট কারে বাসের ধাক্কা, প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর
কারের ধাক্কায় প্রাণ গেল ৩ বাইক আরোহীর
পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রাণ গেল সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তার
গাছের সঙ্গে বাইকের ধাক্কা, চালক নিহত

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Awami League is in heaven people are in hell Rizvi

আওয়ামী লীগ বেহেশতে, জনগণ নরকে: রিজভী

আওয়ামী লীগ বেহেশতে, জনগণ নরকে: রিজভী
আলোচনা সভায় রুহুল কবির রিজভী। ছবি: নিউজবাংলা
রিজভী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ নয়, সরকারের বশংবদরা বেহেশতে আছে। কিন্তু জনগণ আপনাদের দুঃশাসনের নরকে আছে।’

দেশের জনগণ নয় বরং ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থকরা এখন বেহেশতে আছেন বলে মনে করছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের এক বক্তব্যের সমালোচনায় শনিবার নয়াপল্টনে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে এ মন্তব্য করেন তিনি।

রিজভী বলেন, ‘বাংলাদেশের মানুষ নয়, সরকারের বশংবদরা বেহেশতে আছে। কিন্তু জনগণ আপনাদের দুঃশাসনের নরকে আছে।’

বৈশ্বিক মন্দা পরিস্থিতিতে অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ সুখে আছেন বলে শুক্রবার সকালে সিলেটে এক অনুষ্ঠানে মন্তব্য করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের মানুষ বেহেশতে আছে।’

ওই বক্তব্যের প্রসঙ্গ তুলে আওয়ামী লীগের উদ্দেশে রিজভী আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগের ওয়ার্ডের নেতারা এখন কোটিপতি। লক্ষ কোটি টাকা লুটপাট করে যারা বিদেশে টাকা পাচার করেছে, যারা বিদেশে অট্টালিকা তৈরি করেছে সেই টাকা পাচারকারীরা বেহেশতে আছেন। তবে সে বেহেশত সাদ্দাতের বেহেশত। অচিরেই সেই বেহেশত ভেঙে খান খান হয়ে যাবে।’

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘মোমেন সাহেব আপনি তো বাজারে যান না, রিকশাওয়ালার কথা শোনেন না, গরিব মানুষের কথা শোনেন না। একটা ডিমের দাম এখন সাড়ে ১২ টাকা, এক হালি ডিমের দাম পঞ্চাশ টাকা, এক কেজি ইলিশ কিনতে দুই হাজার টাকা লাগে।

‘সবজি বাজারে এখন আগুন, মানুষ চাল-ডাল-সবজি কিনতে পারছে না। অভাবের তাড়নায় মানুষ সন্তান বিক্রি করছে। জনগণ আপনাদের তৈরি করা আগুনে জ্বলে পুড়ে মরছে। মধ্যবিত্ত, নিম্ন মধ্যবিত্তরা এখন হাহাকার করছে, এগুলো গণমাধ্যমে উঠছে, যদিও গণমাধ্যম চাপে আছে। তারপরেও অনেক কিছু গণমাধ্যমে উঠে আসছে।’

রিজভী বলেন, ‘গোটা দেশে এখন দুর্ভিক্ষের ছায়া বিস্তারলাভ করেছে। আপনারা বেহেস্তের কথা বলে অহংকার করেন, জনগণের টাকা হরিলুট করে আপনাদের অনেক টাকা, আপনারা বেহেশতে থাকতে পারেন, মোমেন সাহেব আপনার এই বক্তব্য ক্ষুধার্ত জনগণের সাথে চরম রসিকতা।’

ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘আপনারা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিয়ে রাজপথ দখলের হমকি দেন, যদি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী না থাকে তাহলে আপনারা রাজপথ থেকে ভীত শৃগালে মতো পালিয়ে যাবেন।

‘বিএনপি নেতা-কর্মীদের গুম করে, খুন করে, বিচারবর্হির্ভূত হত্যা করে, সম্পদ হরিলুট করে, চুরি করে আপনারা অহঙ্কার দেখাচ্ছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ছাড়া মাঠে নামলে আপনারা তুলার মতো উড়ে যাবেন।’

রিজভী বলেন, ‘এত বড় কথা বলেন, আপনার নেত্রীকে এক এগারোতে যখন গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, কই তখন তো রাজপথে একটি মিছিল করতে পারেননি। ১৫ আগস্টের ঘটনার সময় তো রাস্তায় নামেননি। আপনাদের পতন কেউ ঠেকিয়ে রাখতে পারবে না।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর ৫৩তম জন্মদিন উপলক্ষে জিয়া মঞ্চ আয়োজিত এ সভায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমান ও তার ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকোর আত্মার মাখফিরাত কামনা করা হয়।

রিজভী বলেন, ‘আরাফাত রহমান কোকো একজন দক্ষ ক্রীড়া সংগঠক ও নীরহংকার মানুষ ছিলেন। রাজনৈতিক কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে। মানুষের ভোটের অধিকার আদায়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যখন আন্দোলন করছিলেন, তখন শেখ হাসিনা বেগম খালেদা জিয়াকে বালুর ট্রাক দিয়ে বন্দি করে রেখেছিলেন

‘মায়ের সে দুর্দিন তার ছোট সন্তান মেনে নিতে পারেননি। সেদিন মানসিকভাবে চাপে পড়ে তার মৃত্যু হয়েছিল।’

আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক মীর সরফত আলী সপু, অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, ফয়েজ উল্লাহ ইকবাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
জালিয়াতির আরেকটা নির্বাচনের প্রস্তুতি চলছে: রিজভী
রিজভী কাঁথা-বালিশ নিয়ে অফিসে ঘুমিয়ে থাকেন: মায়া
ফখরুল-রিজভীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A commission is expected to be launched this year to find the solution to Bangabandhus murder

বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলব খুঁজতে এ বছরই কমিশন চালুর আশা

বঙ্গবন্ধু হত্যার কুশীলব খুঁজতে এ বছরই কমিশন চালুর আশা ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিপথগামী একদল সেনা সদস্যের হাতে সপরিবারে নিহত হন বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ছবি: সংগৃহীত
আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘আপনারা জানেন, কোভিড যায় যায় করেও যাচ্ছে না। বর্তমান বৈশ্বিক অবস্থাও অনুধাবন করছেন। এখানে অর্থনৈতিক বিষয়েও কিছু সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে। সে জন্য কমিশনের রূপরেখার বিষয়ে নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়ে উঠছে না। আশা করছি কিছুদিনের মধ্যে আলোচনায় বসতে পারব। এই বছর নাগাদ আমরা হয়তো কমিশন চালু করতে পারব।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পেছনে জড়িত ষড়যন্ত্রকারীদের খুঁজতে চলতি বছরের শেষ নাগাদ কমিশন চূড়ান্ত হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শনিবার শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় আয়োজিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ আশার কথা জানান।

কমিশনের অগ্রগতির বিষয়ে প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ষড়যন্ত্রকারীদের খোঁজার বিষয়ে কমিশনের রূপরেখা তৈরি করেছি। এখন কমিশন গঠন ও এর কার্যপ্রণালি নির্ধারণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া জরুরি।’

তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন, কোভিড যায় যায় করেও যাচ্ছে না। বর্তমান বৈশ্বিক অবস্থাও অনুধাবন করছেন। এখানে অর্থনৈতিক বিষয়েও কিছু সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে।

‘সে জন্য কমিশনের রূপরেখার বিষয়ে নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে আলোচনা করা হয়ে উঠছে না। আশা করছি কিছুদিনের মধ্যে আলোচনায় বসতে পারব। এই বছর নাগাদ আমরা হয়তো কমিশন চালু করতে পারব।’

এখন রূপরেখাটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। পরে প্রধানমন্ত্রী প্রয়োজনে সংযোজন-বিয়োজনের মাধ্যমে বিষয়টি চূড়ান্ত অনুমোদন করবেন বলেও মন্ত্রী জানিয়েছেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বিপথগামী একদল সেনা সদস্যের হাতে সপরিবারে নিহত হন বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

১৯৭৫ সালের ওই দিনে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাসায় আক্রমণ করে। বঙ্গবন্ধু ছাড়াও নৃশংসভাবে হত্যা করা হয় তার স্ত্রী বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামাল, দ্বিতীয় পুত্র শেখ জামাল, কনিষ্ঠ পুত্র শিশু শেখ রাসেল, নবপরিণীতা পুত্রবধূ সুলতানা কামাল ও রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর একমাত্র ভাই শেখ আবু নাসেরকে।

এ ছাড়া বেইলি রোডে সরকারি বাসায় হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছোট মেয়ে বেবি সেরনিয়াবাত, কনিষ্ঠ পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, দৌহিত্র সুকান্ত আবদুল্লাহ বাবু, ভাইয়ের ছেলে শহীদ সেরনিয়াবাত ও আবদুল নঈম খান রিন্টুকে। আরেক বাসায় হত্যা করা হয় বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা শেখ ফজলুল হক মণি ও তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী বেগম আরজু মণিকে।

সে সময় দেশে না থাকায় বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।

আরও পড়ুন:
ডিসেম্বরে গাড়ি চলবে বঙ্গবন্ধু টানেলে: মন্ত্রিপরিষদ সচিব
টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বিএসএমএমইউ ভিসির শ্রদ্ধা
বঙ্গবন্ধু সেতুতে প্রায় ৪ কো‌টি টাকার রেকর্ড টোল
তবু টোলে এগিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু
টোল আদায়ে বঙ্গবন্ধু সেতুর রেকর্ড

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Even after a month of journalist Tulis death there is no end to the investigation

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই সাংবাদিক সোহানা পারভীন তুলি। ছবিটি ফেসবুক থেকে নেয়া।
হাজারীবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনও ময়নাতদন্ত ও মোবাইল ফোনের ফরেনসিক রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া যাবে।’

সাংবাদিক সোহানা পারভীন তুলির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধারের এক মাসেও তদন্তে তেমন অগ্রগতি হয়নি। মৃত্যুর আগের দিন তুলি তার বন্ধু রফিকুল ইসলাম রঞ্জুর ফোনে একটি মেসেজ পাঠান। সেখানে আত্মহত্যার হুমকির কথা থাকলেও রঞ্জুকে একবারের পর আর জিজ্ঞাসাবাদ করেনি পুলিশ।

সাংবাদিক রঞ্জুর বিরুদ্ধে তুলিকে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করার অভিযোগ তুলছেন তার পরিবার ও সাবেক সহকর্মীরা। এ ঘটনায় হাজারীবাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, রঞ্জুর সঙ্গে তুলির কী সম্পর্ক ছিল, মোবাইল ফোনে বিভিন্ন সময়ে তাদের কী কথোপকথন হয়েছে তা জানতে তুলির মোবাইল ফোন সিআইডির ফরেনসিক বিভাগে পাঠানো হয়েছে। এ কাজ শেষ করতে সময় লাগবে।

রাজধানীর রায়েরবাজারের মিতালী রোডের বাসা থেকে গত ১৩ জুলাই দুপুরে সোহানা পারভীন তুলির ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরে হাজারীবাগ থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন তুলির ভাই মোহাইমেনুল ইসলাম।

হাজারীবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনও ময়নাতদন্ত ও মোবাইল ফোনের ফরেনসিক রিপোর্ট পাইনি। রিপোর্ট পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া যাবে।’

রিপোর্ট পেতে কত সময় লাগতে পারে সে বিষয়ে নিশ্চিত নন পুলিশের এই কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘আমরা প্রায়োরটি দিয়ে রিপোর্টগুলো আনার চেষ্টা করছি। তবে সিআইডিতে সারা দেশের বিষয়গুলো আসে। এ কারণে রিপোর্ট পেতে সময় লাগে। মেডিক্যাল রিপোর্ট পেতেও সময় লাগবে।’

ঘটনার পর তুলির বাসার দারোয়ান একটি মোটরসাইকেলের নম্বর পুলিশকে দেন। তার সূত্র ধরেই পুলিশ রফিকুল ইসলাম রঞ্জুকে শনাক্ত করে। তুলির সঙ্গে সম্পর্ক ও নিয়মিত যোগাযোগ থাকার কথা পুলিশের কাছে স্বীকার করেছেন রঞ্জু। তবে আত্মহত্যা প্ররোচনার অভিযোগ তিনি স্বীকার করেননি।

আরও পড়ুন: প্রাণোচ্ছল, পরোপকারী তুলির মনে কী দুঃখ ছিল

হাজারীবাগ থানার ওসি মোক্তারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রঞ্জুকে নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে। দীর্ঘ সময়ের জন্য ঢাকার বাইরে কোথাও গেলে আমাদের অবহিত করতে বলেছি। তদন্তের প্রয়োজনে আবার ডাকলে তাকে আসতে হবে।’

মামলার তদন্তসংশ্লিষ্ট ডিএমপি রমনা বিভাগের একজন কর্মকর্তা জানান, তুলির সঙ্গে সাংবাদিক রঞ্জুর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। মোবাইল ফোনে তাদের নিয়মিত যোগাযোগ হতো এবং তুলির বাসায়ও রঞ্জু প্রায়ই যাতায়াত করতেন। ঘটনার আগের দিন বিকেল ৩টা ৯ মিনিটে রঞ্জুকে তুলি মেসেজ পাঠিয়েছিলেন। এক লাইনের মেসেজে লেখা ছিল, ‘আজকে তুই মরার খবর পাবি’।

তিনি বলেন, ‘রঞ্জুকে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি সম্পর্কের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। তবে তুলির পাঠানো মেসেজটি তিনি না দেখেই ডিলিট করে দেন বলে দাবি করেছেন।’

সাংবাদিক তুলির মৃত্যুর এক মাসেও তদন্তের কিনারা নেই
সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রঞ্জুর বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগ তুলেছে তুলির পরিবার

তুলির ভাই মোহাইমেনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ধারণা করছি, আপুকে আত্মহত্যার দিকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আমরা তথ্য-প্রমাণের জন্য অপেক্ষা করছি। আপুর ফোন সিআইডির কাছে আছে। তাদের রিপোর্ট পেলে অনেক কিছুই বেরিয়ে আসবে। আমরা চাই, পুলিশ তদন্ত করে সত্য বের করে আনুক। আমরা ঘটনার বিচার চাই।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তুলির সাবেক এক সহকর্মী বলেন, ‘রঞ্জু মোবাইলে মেসেজ পেয়ে তুলিকে ফেরানোর চেষ্টা করলে আজ হয়তো সে বেঁচে থাকত। নিশ্চয়ই ওদের মধ্যে এমন কিছু হয়েছে, যাতে তুলি এমন কথা লিখে মেসেজ করেছে। তাদের মধ্যে কী হয়েছিল, কেন তুলি আত্মহত্যার পথ বেছে নিল, তা তদন্তে বেরিয়ে আসা উচিত।‘

তুলির ফোনে পাঠানো মেসেজ ও সম্পর্কের বিষয়ে জানতে চাইলে রফিক রঞ্জু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না কী কারণে সে এ ধরনের মেসেজ দিয়ে থাকতে পারে। একটা ভালো সম্পর্ক ছিল, কোনো ধরনের ঝগড়া বা এ ধরনের কোনো কিছু আমার সঙ্গে ওর হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘মেসেজটি আমি দেখিনি। এরপর আর কোনো কথাও হয়নি। পরদিনই তো খবরটা পাইছি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষার্থী সোহানা তুলি এক দশকের বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতায় জড়িত ছিলেন। সবশেষ ২০২১ সালের মে মাস পর্যন্ত তিনি অনলাইন সংবাদমাধ্যম বাংলা ট্রিবিউনে কর্মরত ছিলেন। এরপর কয়েক মাস সেন্টার ফর কমিউনিকেশন অ্যাকশন বাংলাদেশ নামের একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছিলেন।

বাংলা ট্রিবিউনের আগে তিনি কাজ করেছেন দৈনিক কালের কণ্ঠ ও দৈনিক আমাদের সময়ে।

সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম রঞ্জু সবশেষ কর্মরত ছিলেন দৈনিক সমকালে। তুলির ঘটনার পর কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্তে তিনি চাকরি ছেড়ে দেন।

আরও পড়ুন:
লাশ নিয়ে ‘ঘুষখোরের’ বাড়িতে, ফেরত এলো ৬ লাখ টাকা
এজিবি কলোনিতে ফ্যানে ঝুলছিল স্কুলছাত্রীর দেহ
অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে গেল প্রাণ
‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’
সাংবাদিক মারধরে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police case against 24 leaders of Juba Dal Chhatra Dal

যুবদল-ছাত্রদলের ২৪ নেতার নামে পুলিশের মামলা

যুবদল-ছাত্রদলের ২৪ নেতার নামে পুলিশের মামলা সংঘর্ষের চিত্র। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
মামলায় যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ২৪ নেতা-কর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত পরিচয় ২০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ফেনীতে বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-ছাত্রলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের নামে মামলা করেছে পুলিশ। ২৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় ২০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

ফেনী মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সিরাজ মিয়া শুক্রবার রাতে বিস্ফোরক আইনে মামলাটি করেন।

একই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন নিউজবাংলাকে মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলায় ফেনী জেলা যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বেলাল হোসেন, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি সালাহ উদ্দিন মামুন, সাধারণ সম্পাদক মোরশেদ আলম মিলন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন রিয়াদ, ফেনী পৌর সদস্য সচিব ইব্রাহিম হোসেন ইভুসহ যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ২৪ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

জ্বালানি তেল ও নিত্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে বিএনপি। বিকেলের দিকে শহরের ইসলাম রোড থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি ট্রাংক রোডের জিরো পয়েন্টের দিকে যাওয়ার সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা মিছিলকারীদের ধাওয়া দেন। একপর্যায়ে দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ায়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়ে পুলিশ। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী চলা এ সংঘর্ষে পথচারীসহ অন্তত ১০ জন আহত হন।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ মিছিলে বিএনপি-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ
বিএনপি-ছাত্রলীগ সংঘর্ষে আহত ৩০
ভোলায় সংঘর্ষ: নিহত ছাত্রদল নেতার দেহে গুলির চিহ্ন
দুই কর্মী নিহত: ভোলায় বিএনপির ব্যাপক বিক্ষোভ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The body of the bike driver was found on the land and the body was detained 2

জমিতে মিলল বাইকচালকের মরদেহ, আটক ২

জমিতে মিলল বাইকচালকের মরদেহ, আটক ২ প্রতীকী ছবি
সোনাডাঙ্গা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাহিদ হাসান মৃধা বলেন, ‘সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করেছে। পরে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

খুলনা মহানগরীতে এক ইজিবাইকচালকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় দুজনকে আটক করেছে পুলিশ।

নগরীর সোনাডাঙ্গা থানাধীন আলীর ক্লাব এলাকার দারুস সালাম মসজিদসংলগ্ন পরিত্যক্ত জমি থেকে শনিবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

১৮ বছর বয়সী নিহতের নাম মো. নয়ন শেখ। তিনি ওই একই এলাকার বাসিন্দা ছিলেন।

সোনাডাঙ্গা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাহিদ হাসান মৃধা নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহটি উদ্ধার করেছে। পরে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

তার মৃত্যুর কারণ এখনো জানা যায়নি। তবে এ ঘটনায় সন্দেহভাজন দুজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের পরিচয় তদন্ত না করে প্রকাশ করা সম্ভব নয় বলেও জানান পুলিশের ওই কর্মকর্তা।

আরও পড়ুন:
এজিবি কলোনিতে ফ্যানে ঝুলছিল স্কুলছাত্রীর দেহ
অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে গেল প্রাণ
‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’
নারী চিকিৎসক হত্যায় যুবক আটক
রাজধানীর হোটেলে নারী চিকিৎসকের গলা কাটা দেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Farmers dream of golden dawn

সোনালি আউশে স্বপ্ন কৃষকদের

সোনালি আউশে স্বপ্ন কৃষকদের
বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর বলেন, ‘পাহাড়পুর ও বেলবাড়ি এলাকায় আড়াই শ বিঘা জমিতে মাত্র একবার ফসল হতো। এখন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায় কৃষকরা এই জমিতে ধানসহ তেলজাতীয় ফসলও (তিল, সরিষা) পাচ্ছেন। নিঃসন্দেহে এই এলাকার জন্য এই ফসল সুফল বয়ে আনবে।’

শ্রাবণের বাতাসে দোল খাওয়া সোনালি আউশ ধান সংগ্রহে ব্যস্ত কৃষকরা। প্রথমবারের মতো জমিগুলোতে ভালো ফলন হওয়ায় কৃষকদের পরিবারে বইছে আনন্দের ঢেউ।

বাংলাদেশ-ভারতের সীমান্তবর্তী কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার পাহাড়পুরের জমিতে শুক্রবার এ চিত্র দেখা যায়।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, গত বছরের তুলনায় এ বছর বুড়িচং উপজেলায় আউশ আবাদ বৃদ্ধি পেয়েছে ২১০ হেক্টর জমিতে। পতিত জমিতে আউশ আবাদ বৃদ্ধির নানা কার্যক্রমের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে বলে জানান কৃষকরা।

তা ছাড়া প্রায় প্রতিটি গ্রামে ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে প্রচলিত ব্রি ধান-৪৮-এর চেয়ে অধিক ফলনশীল ব্রি ধান-৮২, ব্রি ধান ৯৮ ও বিনা ধান-২১-এর বীজ। এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী বিঘাপ্রতি ১৬ থেক ১৭ মণ ফলন পাওয়া যাচ্ছে এসব ধান থেকে। তাই এ বছর আউশে বাম্পার ফলন প্রত্যাশা করছে কৃষি বিভাগ।

সোনালি আউশে স্বপ্ন কৃষকদের

স্থানীয় কৃষক আবদুল হান্নান বলেন, ‘আগে একটা ফসল পাইতাম। এহন ধানসহ তিনডা (তিনটি) ফসল পাই। কৃষি অফিস আমডারে দেহাশুনা করে। এই সাহসে ধান লাগাইছি। আল্লাহর কাছে হাজার শুকরিয়া, ভালা ধান পাইছি।’

কৃষক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘পানির ব্যবস্থাডা ঠিক থাকলে এহন থাইক্কা প্রতি বছরই তিনবার ধান পামু। একবার তিল সরিষা চাষ করমু।’

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর বলেন, ‘পাহাড়পুর ও বেলবাড়ি এলাকায় আড়াই শ বিঘা জমিতে মাত্র একবার ফসল হতো। এখন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায় কৃষকরা এই জমিতে ধানসহ তেলজাতীয় ফসলও (তিল, সরিষা) পাচ্ছেন। নিঃসন্দেহে এই এলাকার জন্য এই ফসল সুফল বয়ে আনবে।’

উপজেলার সীমান্তবর্তী আনন্দপুর ও বেলবাড়ি এলাকায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সহযোগিতায় ব্রি আঞ্চলিক কার্যালয় কুমিল্লায় মাঠ দিবসের আয়োজন করে। প্রথমবারের মতো চাষ করা আউশের জমি পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মো. শাহজাহান কবীর, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক ড. মোহিত কুমার দে ও কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসানসহ আরও অনেকে।

সোনালি আউশে স্বপ্ন কৃষকদের

পতিত জমিতে আউশ আবাদ বৃদ্ধি কার্যক্রমটির পরিকল্পনা ও সমন্বয়কারী অতিরিক্ত কৃষি অফিসার বানিন রায় অতিথিদের বেলবাড়ি মাঠে প্রথমবারের মতো চাষ হওয়া ৭০ বিঘা জমির আউশের মাঠ ঘুরে দেখান।

কৃষিবিদ বানিন রায় স্থানীয় কৃষকদের পক্ষে পাগলি খালের ওপর স্লুইচ গেট ও খালের পার ঘেঁষে উৎপাদিত কৃষিপণ্য পরিবহনের জন্য রাস্তার দাবি জানান। এ দাবি বাস্তবায়িত হলে মাঠের ২০০ বিঘা জমিতে দুই ফসলের পরিবর্তে চার ফসল ও ৫০ বিঘা জমিতে বছরব্যাপী সবজি চাষ সম্ভব হবে বলে জানান তিনি।

পাহাড়পুর গ্রামের বেলবাড়ি মাঠে আউশ আবাদ বৃদ্ধির কার্যক্রমটি ব্রি আঞ্চলিক কার্যালয় কুমিল্লার অর্থায়নে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বুড়িচং দ্বারা বাস্তবায়িত। ব্রি কুমিল্লার গবেষণা ও উন্নয়ন কার্যক্রম জোরদারকরণ কর্মসূচির আওতায় এর আগে ৪০ জন কৃষককে ব্রি ধান ৪৮ ও ব্রি ধান ৯৮ জাতের বীজ সহায়তা, ব্রি হাইব্রিড ধান ৭ জাতের ২টি প্রদর্শনী, ৬০ বিঘা জমির ২০ কেজি করে ইউরিয়া সার ও ৫৪ জন কৃষকের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। সব কার্যক্রম তদারকি করেন উপসহকারী কৃষি অফিসার মো. সাহেদ হোসেন।

মাঠ দিবসে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর কুমিল্লার উপপরিচালক মো. মিজানুর রহমান, বুড়িচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার হালিমা খাতুন, বিএডিসি সুপারিনটেনডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, বুড়িচং উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. ছামিউল ইসলাম, ব্রি এর বিজ্ঞানীসহ দুই শতাধিক কৃষক-কিষানি উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ছিলেন ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. মামুনুর রশিদ।

আরও পড়ুন:
বঙ্গমাতা বিশ্বব্যাপী নারীদের কাছে অনুকরণীয়: প্রধানমন্ত্রী
যুব সমাজ যেন খেলাধুলা-সাংস্কৃতিক চর্চায় আরও আন্তরিক হয়: প্রধানমন্ত্রী
স্পেন ও যুক্তরাজ্য সফর শেষে দেশে ফিরেছেন সেনাপ্রধান
খুনিচক্র আমাকেও সরাতে চায়: প্রধানমন্ত্রী
‘বিএনপি দিনের বেলায় সিল মারত, রাতে দেয়া লাগবে কেন’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
After going out at night the body was found on the railway line in the morning

রাতে বের হয়ে সকালে রেললাইনে মিলল মরদেহ

রাতে বের হয়ে সকালে রেললাইনে মিলল মরদেহ বাড়ির আঙিনায় নুরসাদের মরদেহ। ছবি: নিউজবাংলা
মরদেহের মাথায় জখম রয়েছে জানিয়ে পরিদর্শক বলেন, ‘ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।’

নাটোরের সদরে দিনমজুর এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার কালিকাপুর আমহাটি এলাকায় রেললাইনের পাশ থেকে শনিবার সকাল ৮টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ৩২ বছরের নুরসাদ প্রামাণিক কালিকাপুরের রুপচান প্রামাণিকের ছেলে।

পরিবারের বরাতে পরিদর্শক জানান, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে বাড়ি থেকে বের হন নুরসাদ। রাতে বাসায় ফিরতে দেরি করায় পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি করলেও তার সন্ধান মেলেনি।

শনিবার সকালে স্থানীয়রা আমহাটি এলাকায় রেললাইনের পাশে মরদেহটি পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

মরদেহের মাথায় জখম রয়েছে জানিয়ে পুলিশের এ কর্মকর্তা বলেন, ‘ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে।’

আরও পড়ুন:
অটোরিকশা-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে গেল প্রাণ
‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’
নারী চিকিৎসক হত্যায় যুবক আটক
রাজধানীর হোটেলে নারী চিকিৎসকের গলা কাটা দেহ
রাতে নিখোঁজ, সকালে কচুক্ষেতে মিলল স্কুলছাত্রের মরদেহ

মন্তব্য

p
উপরে