× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Old man dies of electrocution
hear-news
player
print-icon

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে বৃদ্ধের মৃত্যু

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে-বৃদ্ধের-মৃত্যু
প্রতীকী ছবি
আটোয়ারী থানার ওসি সোহেল রানা জানান, রাতের খাওয়া শেষে নিজ ঘরে যান নিকান্দু বর্মন। এ সময় ঘরের বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানোর জন্য ইলেকট্রিক বোর্ডের সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি।

পঞ্চগড়ের আটোয়ারী উপজেলায় নিজ শোবার ঘরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।

জেলার আটোয়ারী উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের রসেয়া জামুরীবাড়ী গ্রামে রোববার রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

৬৫ বছরের নিকান্দু বর্মনের বাড়ি ওই একই এলাকায়।

আটোয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোহেল রানা এসব তথ্য নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, রাতের খাওয়া শেষে নিজ ঘরে যান নিকান্দু বর্মন। এ সময় ঘরের বৈদ্যুতিক বাতি জ্বালানোর জন্য ইলেকট্রিক বোর্ডের সুইচ দিতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি। একসময় পরিবারের সদস্যরা তাকে সুইচের সঙ্গে আটকে থাকতে দেখে দ্রুত উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আরও পড়ুন:
কাপড় শুকাতে দেয়া তারে প্রাণ গেল স্বামী-স্ত্রীর
মাছ ধরতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু
সাইনবোর্ড সরাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ মৃত্যু
বাড়িতে জলাবদ্ধতা, বিদ্যুতায়িত হয়ে দুজনের মৃত্যু
একজনকে বাঁচাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুজনের মৃত্যু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Disabled girl arrested in rape case

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার

প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার
হোসেনপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আসাদুজ্জামান টিটু বলেন, ‘২৭ বছর বয়সী ওই বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী তরুণীকে একটি ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেন। পরে বিষয়টি মাকে ওই তরুণী ইশারায় সব বুঝিয়ে বলেন। এ ঘটনায় তার মা রাতেই মামলা করলে হারেঞ্জা এলাকা তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী তরুণীকে ধর্ষণ মামলায় এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

উপজেলার হারেঞ্জা এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার ৩৯ বছর বয়সী এই ব্যক্তির নাম লুৎফর রহমান রুক্তন। তিনি উপজেলার হারেঞ্জা গ্রামের বাসিন্দা। চার সন্তানের জনক তিনি।

এর আগে বিকেলে ওই তরুণীকে ধর্ষণ করেন লুৎফর। পরে রাতেই ওই তরুণীর মা হোসেনপুর থানায় লুৎফরকে একমাত্র আসামি করে মামলা করেন।

হোসেনপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আসাদুজ্জামান টিটু নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘২৭ বছর বয়সী ওই বাক ও শ্রবণ প্রতিবন্ধী তরুণীকে একটি ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেন। পরে বিষয়টি মাকে ওই তরুণী ইশারায় সব বুঝিয়ে বলেন। এ ঘটনায় তার মা রাতেই মামলা করলে হারেঞ্জা এলাকা তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।’

ওই তরুণীকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য শুক্রবার কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামিকে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
ধর্ষণ মামলায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র গ্রেপ্তার
ধর্ষণ মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন
ধর্ষণ মামলায় ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার
বাসে ডাকাতি-সংঘবদ্ধ ধর্ষণ: আরও ২ আসামির স্বীকারোক্তি
ধর্ষণের পর শিশু হত্যার অভিযোগ, আসামি গ্রেপ্তার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The body of the old woman was recovered from the pond

পুকুর থেকে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার

পুকুর থেকে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার পুকুর থেকে এক বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। ছবি: নিউজবাংলা
সদর থানার ওসি বলেন, ‘মরদেহের মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সে কারণে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে না। তবে ওই বৃদ্ধা কোথা থেকে কীভাবে এখানে এলো তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। তার পরিচয় শনাক্তকরণে কাজ করা হচ্ছে।’

নাটোরে পুকুর থেকে এক বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস।

শহরের পৌর এলাকার মীরপাড়া দারুস সালাম জামে মসজিদের পেছনের পুকুর থেকে শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

ওই বৃদ্ধার আনুমানিক বয়স ৬০ বছর। এখন পর্যন্ত তার পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাছিম আহম্মেদ নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে পুকুরের পানিতে কেউ পড়ে গেছে এমন সংবাদ পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে যান। কিন্তু সেখানে কাউকে দেখতে না পেয়ে ফিরে যান তারা। শুক্রবার সকালে এলাকাবাসী পুকুরে একটি মরদেহ ভাসতে দেখে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসে খবর দেয়।

ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। পরে পুলিশ প্রাথমিক সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ওসি বলেন, ‘মরদেহের মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সে কারণে ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে না। তবে ওই বৃদ্ধা কোথা থেকে কীভাবে এখানে এলো তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। তার পরিচয় শনাক্তকরণে কাজ করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
নিজ ঘরেই সিঁধ কেটে স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগ
মামুনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা মামলা হচ্ছে!
খায়রুনের প্রথম স্বামী ছিলেন সহপাঠী, চালিয়েছেন অটোরিকশাও
খায়রুনকে লাথি মেরে সেই রাতে বাইরে যান স্বামী
শালবনে অজ্ঞাত ব্যক্তির অর্ধগলিত দেহ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
After seeing the magistrate the price of eggs has reduced by 6 rupees

ম্যাজিস্ট্রেট দেখেই হালিতে ডিমের দাম কমল ৬ টাকা

ম্যাজিস্ট্রেট দেখেই হালিতে ডিমের দাম কমল ৬ টাকা রাজশাহীর একটি বাজারে ম্যাজিস্ট্রেট দেখে ডিমের দাম কমেছে ছয় টাকা। ছবি: নিউজবাংলা
জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক হাসান বলেন, ‘তারা আগেই খবর পেয়েছিল কি না জানি না। আমরা বাজারে ঢোকামাত্রই ৬ টাকা দর কমে গেছে। আমরা যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডিমের দাম ৪০ টাকা হয়ে গেছে।’

রাজশাহীর একটি বাজারে ম্যাজিস্ট্রেট দেখে ডিমের দাম ৬ টাকা কমানোর খবর জানা গেছে।

নগরের সাহেব বাজারে বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, সকালে প্রতি হালি লাল ডিম বিক্রি হচ্ছিল ৪৬ টাকা দরে। দুপুর ১২টার দিকে সাহেব বাজারে অভিযানে যান ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের দল। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট দেখে মুহূর্তেই ডিমের দাম ৬ টাকা কমে তড়িঘড়ি করে তালিকা বদলে লেখা হলো ৪০ টাকা।

তবে এ সময় মূল্য তালিকা ও বেশি দাম রাখার কারণে দুই ডিমের দোকানিকে জরিমানা করা হয়েছে।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক হাসান-আল-মারুফ নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

ম্যাজিস্ট্রেট দেখেই হালিতে ডিমের দাম কমল ৬ টাকা

তিনি বলেন, ‘রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয় ও জেলা কার্যালয়ের যৌথ নেতৃত্বে রাজশাহী মহানগরের খড়খড়ি, আশরাফের মোড় এবং নলখোলা মোড় ডিমের আড়ত ও পাইকারি দোকান এবং সাহেব বাজারের খুচরা ডিমের দোকান ও মুরগির মাংসের দোকানে তদারকিমূলক অভিযান পরিচালনা করা হয়।

‘এ সময় পাইকারি আড়তে সাদা ডিমের দাম হালি ৩৭-৩৮ টাকা, লাল ডিমের পাইকারি দর হালিতে ৩৮-৪০ টাকা পাওয়া যায়। তবে এই দর নিয়ে খুচরা বাজারে গেলে সেখানে ক্রেতারা অভিযোগ করেন, সকালেই এখানে ৪৬ টাকা হালি দরে লাল ডিম বিক্রি হয়েছে।’

সহকারী পরিচালক হাসান আরও বলেন, ‘তারা আগেই খবর পেয়েছিল কি না জানি না। আমরা বাজারে ঢোকামাত্রই ৬ টাকা দর কমে গেছে। আমরা যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ডিমের দাম ৪০ টাকা হয়ে গেছে।

‘আমরা অন্তত ৩০টি দোকানে গিয়েছি, সবখানেই মূল্য তালিকা আছে। চকচকা মূল্য তালিকায় লেখা আছে ১৮ আগস্ট ২০২২ লাল ডিম ৪০ টাকা, সাদা ডিম ৩৮ টাকা। এটি অদ্ভুত একটি বিষয়। মনে হলো জাদুর মতো কাজ হলো।’

ভোক্তা অধিকারের এই কর্মকর্তা জানান, সাহেব বাজারের অভিযানে আল মদিনা ট্রেডার্সে মূল্য তালিকা না থাকায় এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। মধু ঘর তাদের মূল্য তালিকায় ৪২ টাকা লিখে রাখলেও বিক্রি করছিল ৪৪ টাকা। একজন ভোক্তা হাতেনাতে তাকে ধরিয়ে দিলে ওই দোকানমালিককে ২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

জামাল উদ্দিন নামে এক ক্রেতা বলেন, ‘সকালেই ৪৬ টাকা হালি ডিম কিনেছি। এখন ম্যাজিস্ট্রেট আসার সঙ্গে সঙ্গেই দাম কমে গেল। এটা কী করে সম্ভব। ওরা বলে বেশি দামে কিনেছে সে কারণে বেশি দামে বিক্রি করছে। এখন তাহলে ৪০ টাকা করে কীভাবে বিক্রি করছে। আসলে সব শক্তের ভক্ত, নরমের যম। নিয়মিত বাজার মনিটরিং থাকলে আমরা একটু স্বস্তি পাই। ম্যাজিস্ট্রেট আসলে সব কিছুরই দাম কিছুটা কমে।’

ডিম ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমান জীবনের দাবি, আসলে ম্যাজিস্ট্রেট আসার কারণে নয়, তারা দাম কমিয়েছেন নতুন রেট পাওয়ার কারণে।

তিনি বলেন, ‘আমরা সকালে ৪৬ টাকা দামেই ডিম বিক্রি করছিলাম কারণ আগের দিনের দাম ছিল এটা। আমাদের কেনাও হয়েছিল বেশি দামে। দুপুরের দিকে আমরা যখন দিনের নতুন রেট পেলাম, তখনই সেটা ৪০ টাকা দামে বিক্রি শুরু করি। আজকেও আমরা ৪০ টাকা হালি দামেই বিক্রি করছি। আবার নতুন রেট পেলে দাম কম-বেশি হতে পারে।’

আরও পড়ুন:
বাজারে কম ডিমের দাম, হোটেলে বেশি
জনগণকে গাছের পাতা খাওয়ার পরামর্শ মিসরের প্রেসিডেন্টের
ডিমের বাজারও চড়া
দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে চেষ্টা করছে সরকার: এলজিআরডি মন্ত্রী
দ্রব্যমূল্যে বিশ্বের তুলনায় স্বস্তিতে বাংলাদেশ: বাণিজ্যসচিব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A league leader died while opening the auto line

অটোরিকশার লাইন খুলতে গিয়ে আ.লীগ নেতার মৃত্যু

অটোরিকশার লাইন খুলতে গিয়ে আ.লীগ নেতার মৃত্যু আবুল কাশেম। ছবি: সংগৃহীত
ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, ‘আবুল কাশেম ফজরের নামাজ পড়ে বাড়ি ফিরে আসেন। পরে গ্যারেজে গিয়ে চার্জ দেয়া অটোরিকশার লাইন খুলতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।’

কুমিল্লায় চার্জে থাকা ব্যাটারিচালিত অটোরিকশার লাইন খুলতে গিয়ে তারে জড়িয়ে এক ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যু হয়েছে।

আদর্শ সদর উপজেলার বসন্তপুর গ্রামে শুক্রবার ভোর ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত আবুল কাশেম উপজেলার ৫ নম্বর পাঁচথুবী ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন।

পাঁচথুবী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. হাছান রফি রাজু নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাতে তিনি বলেন, ‘আবুল কাশেম ফজরের নামাজ পড়ে বাড়ি ফিরে আসেন। পরে গ্যারেজে গিয়ে চার্জ দেয়া অটোরিকশার লাইন খুলতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।’

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাদেকুর রহমান বলেন, ‘পরিবারের কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ দাফনের প্রস্তুতি চলছে।’

আরও পড়ুন:
বিদ্যুতের খুঁটিতে ঝুলছিল যুবকের দেহ
পিকনিকের লঞ্চ বিদ্যুতায়িত: নিখোঁজ কিশোরের মরদেহ উদ্ধার
পিকনিকের লঞ্চ বিদ্যুতায়িত, নিখোঁজ ১
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে প্রাণ গেল গৃহবধূর 
মোটরের সুইচ দিতে গিয়ে প্রাণ গেল যুবকের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Why did the teacher give equal marks to everyone?

কেন সবাইকে সমান নম্বর দিলেন শিক্ষক

কেন সবাইকে সমান নম্বর দিলেন শিক্ষক জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি
নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিভাগের এক শিক্ষার্থী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সবাইকে প্রেজেন্টেশনে ১০ নম্বর দেয়া হয়েছে। ক্লাসে উপস্থিত না থেকেও অনেক শিক্ষার্থী পূর্ণ ১০ নম্বর পেয়েছে। এ ফলাফলের কারণে অনেক শিক্ষার্থী নিয়মিত ক্লাসে আসতে নিরুৎসাহিত হবেন।’

ময়মনসিংহের ত্রিশালে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় অনুষদের মার্কেটিং বিভাগের এক ব্যাচের সব শিক্ষার্থীকে সমান নম্বর দিয়েছেন এক শিক্ষক। ঘটনাটি জানাজানি হওয়ার পর সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে।

এ ঘটনায় হিল্লোল ফৌজদার নামের বিভাগীয় ওই শিক্ষককে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার ড. সাইফুল কবীর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘‘ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক হিল্লোল মার্কেটিং বিভাগের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ‘ইন্ট্রোডাকশন টু বিজনেস’ কোর্সটির কোর্স শিক্ষক ছিলেন। এই কোর্সের ইন্টারনাল সর্বমোট ৪০ নম্বরের মধ্যে ২৭ জন শিক্ষার্থী ছিলেন। গত ২২ জুলাই সব শিক্ষার্থীকে সমান ৩৭ নম্বর করে দিয়েছেন তিনি। তাকে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।’’

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একই বিভাগের এক শিক্ষার্থী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সবাইকে প্রেজেন্টেশনে ১০ নম্বর দেয়া হয়েছে। ক্লাসে নিয়মিত উপস্থিত না থাকলেও উপস্থিতিতে সবাইকে পূর্ণ ১০ নম্বর করে দেয়া হয়েছে।

‘এ ছাড়া দুটি মিড টার্ম মিলিয়ে সবাইকে ২০ নম্বরের মধ্যে ১৭ নম্বর করে দিয়েছেন আমাদের কোর্স শিক্ষক।’

এভাবে নম্বর দেয়া ঠিক হয়নি বলে মনে করেন এই শিক্ষার্থী। তিনি বলেন, ‘ক্লাসে উপস্থিত না থেকেও অনেক শিক্ষার্থী পূর্ণ ১০ নম্বর পেয়েছেন। এ ফলাফলের কারণে অনেক শিক্ষার্থী নিয়মিত ক্লাসে আসতে নিরুৎসাহিত হবেন।’

এভাবে নম্বর দেয়ার কারণ জানতে চাইলে শিক্ষক হিল্লোল ফৌজদার বলেন, পড়াশোনায় উৎসাহ দিতেই সবাইকে সমান নম্বর দেয়া হয়েছে। তার বর্ণনায়, ‘পড়াশোনায় কেউ যেন উৎসাহ না হারায়, এ জন্য সমান নম্বর দিয়েছিলাম। কিন্তু এভাবে সমালোচনা হবে বুঝতে পারিনি।’

পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের মূল্যায়নের এই পদ্ধতিকে ঠিক মনে করছেন না বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘পরীক্ষার মাধ্যমেই শিক্ষার্থীদের মেধা যাচাই করা হয়। সবাইকে সমান নম্বর দিলে পরীক্ষার মূল্যায়ন থাকে না। ফলে এ ধরনের মানবিকতা দেখানো উচিত হয়নি।’

আরও পড়ুন:
কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সংঘর্ষ
‘ছাত্রলীগ না করায়’ মারধর: তদন্ত প্রতিবেদন জমা
‘অপমানে’ শিক্ষার্থীর আত্মহত্যাচেষ্টা, ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি
কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভিসি ড. সৌমিত্র

মন্তব্য

বাংলাদেশ
40 minutes of breathlessness in the hospital elevator

হাসপাতালের লিফটে রুদ্ধশ্বাস ৪০ মিনিট

হাসপাতালের লিফটে রুদ্ধশ্বাস ৪০ মিনিট
হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক শিমুল মো. রফি বলেন, ‘জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়েই বিদ্যুৎ অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করি। তবে তারা বরাবরের মতোই জরুরি ভিত্তিতে আমাদের ফোন রিসিভ করেনি।’

বিদ্যুৎ বিভ্রাটের কারণে হবিগঞ্জে একটি হাসপাতালের লিফটে অন্তত ৪০ মিনিট আটকা থেকে উদ্ধার হয়েছেন রোগীসহ সাতজন। তাদের চিৎকারে হাসপাতালজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক।

লিফটে আটকে পড়াদের অভিযোগ, তাদের উদ্ধারের জন্য বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে হবিগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎকে কল দেয় ফায়ার সার্ভিস, তবে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্তরা কল রিসিভ করেননি।

হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেলা সদর হাসপাতালের লিফট দিয়ে নামার সময় বৃহস্পতিবার এ ঘটনা ঘটে।

লিফটে থাকা একটি বেসরকারি স্যাটেলাইট টেলিভিশনের সাংবাদিক মোহাম্মদ নূরউদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার পর লিফটের মধ্যে আমরা সাতজন আটকা পড়ি। এ সময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় জেনারেটরে জ্বালানি তেল নেই। উদ্ধার পেতে বিদ্যুৎ অফিসে কল দিলে তারা কোনো রেসপন্স করেনি।

‘পরে জরুরি সেবা ৯৯৯ কল দিলে হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস থেকে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। ফায়ার সার্ভিস কর্মীরাও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের অফিসে কল দিয়ে রেসপন্স পাননি। একপর্যায়ে জেলা প্রশাসকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে অন্তত ৪০ মিনিট পর আটকে থাকা সাতজন উদ্ধার হই।’

হবিগঞ্জ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের উপসহকারী পরিচালক শিমুল মো. রফি বলেন, ‘জরুরি সেবা ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়েই বিদ্যুৎ অফিসের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করি। তবে তারা বরাবরের মতোই জরুরি ভিত্তিতে আমাদের ফোন রিসিভ করেনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘বিদ্যুৎ অফিসে ফোন করলে সব সময় দেরিতে রেসপন্স করে। ফোন ধরতে চায় না। যে কারণে আমরা জরুরি মুহূর্তে সমস্যার মুখোমুখি হই।’

হবিগঞ্জ সদর ২৫০ শয্যা হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল কর্মকর্তা ডা. মমিনুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা বিদ্যুৎ অফিসকে ফোন দিয়েছি জরুরি ভিত্তিতে বিদ্যুৎ সরবরাহ করার জন্য। কিন্তু তারা বিদ্যুৎ সরবরাহ করেনি। সরেজমিনে এসে আমাদের কথার সত্যতা যাচাই করতে একজন সাব অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ারকে পাঠিয়েছেন। বিদ্যুৎ অফিস চরম দায়িত্বজ্ঞানহীনতার পরিচয় দিয়েছে। এই সময়ের মধ্যে কোনো দুর্ঘটনা হলে তার দায়দায়িত্ব কার হতো?’

হাসপাতালের জেনারেটরে তেল নেই কেন এ প্রশ্নের উত্তরে ডা. মুমিনুল ইসলাম জানান, ঘন ঘন বিদ্যুৎ চলে যাবার কারণে জেনারেটরের তেল শেষ হয়ে যায়। তাছাড়া জেনারেটর উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন হওয়ায়, এতে জ্বালানি বেশি লাগে।

হবিগঞ্জ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিস যে অভিযোগ করছে, সেটা সঠিক হওয়ার কথা না। আমার কর্মকর্তাদের বলে রাখা হয়েছে সব সময় যেন তারা কল রিসিভ করেন। এ ছাড়া গতকাল হাসপাতালের লিফটের ঘটনাটি জানার সঙ্গে সঙ্গেই আমরা বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়েছি।’

জেলা প্রশাসক ইশরাত জাহানকে একাধিকবার কল ও এসএমএস করলেও কোনো সাড়া পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
‘মনে হচ্ছিল সবাই মারা যাচ্ছি’
বিমানবন্দরের লিফট থেকে দেড় ঘণ্টা পর উদ্ধার ৪ যাত্রী
হাসপাতালের লিফট বিকল, সিঁড়িতেই প্রসব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Lifetime rent free for child birth launch in Majhnadi

মাঝনদীতে সন্তান প্রসব, লঞ্চে আজীবন ভাড়া ফ্রি

মাঝনদীতে সন্তান প্রসব, লঞ্চে আজীবন ভাড়া ফ্রি মা ঝুমুর আক্তারের মমতায় ছোট্ট ইব্রাহিম। ছবি: নিউজবাংলা
লঞ্চে ছিলেন সন্তান জন্ম দেয়া নারীর মা মিনু বেগমও। কল্পনাতেই ছিল না তার নাতি লঞ্চে জন্ম নেবে। কারণ, আল্ট্রাস‌নোগ্রামের রিপোর্ট অনুযায়ী ডে‌লিভা‌রির তারিখ আরও ১৮ দিন পরে ছি‌ল। অবশ্য এতে অখুশি নন নানি, বরং লঞ্চে নাতি জন্ম নেয়ার ঘটনাটি তার কাছে এখন স্বপ্নের মতোই।

ঢাকা থেকে বরিশাল যাওয়ার পথে মাঝনদীতে লঞ্চে ফুটফুটে এক পুত্রসন্তানের জন্ম দিয়েছেন প্রসূতি। সদরঘাট ছেড়ে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে এমভি প্রিন্স আওলাদ-১০ লঞ্চের ডেকে একজন ধাত্রী ও নার্সের সহযোগিতায় নবজাতকটি ভূমিষ্ঠ হয়।

এদিকে ওই লঞ্চে শিশুটি ও তার মা-বাবাকে আজীবন বিনা খরচে যাতায়াতের সুযোগ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে র্কতৃপক্ষ।

এমভি প্রিন্স আওলাদ-১০ এর সুপারভাইজার জিল্লুর রহমান নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘রাতে লঞ্চটি বরিশালের উদ্দেশে রওনা দেয়। লঞ্চের প্রথম তলার ডেকের যাত্রী ছিলেন ওই অন্তঃসত্ত্বা নারী। লঞ্চটি ঘাট ত্যাগ করার পর রাত সাড়ে ৯টায় তার প্রসব বেদনা শুরু হয়। তখন তাকে লঞ্চের কেবিনে নেয়ার প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল, কিন্তু প্রসূতি ওই অবস্থায় সিঁড়ি বেয়ে উ‌ঠে যাওয়ার মতো অবস্থায় ছিলেন না। তাই তাকে ডেকে রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

‘তখন ডেকের সব পুরুষ যাত্রীকে সরিয়ে দেয়া হয়। এরপর লঞ্চের একজন নারী ধাত্রী যাত্রী ও বরিশাল মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের একজন নার্সের সহায়তায় পুত্রসন্তানের জন্ম দেন তিনি।’

ধাত্রী রানী বেগম নিউজবাংলাকে ব‌লেন, ‘হঠাৎ ক‌রে এই নারীর ব্যথা শুরু হয়। তখন তা‌কে ওষুধও খাওয়া‌নো হয়। প্রসব বেদনা আরও বাড়লে কাপড় দি‌য়ে চারপাশ ঢেকে ফেলা হয়। ‌বাচ্চার প‌জিশন ভা‌লো থাকায় ভা‌লোভা‌বেই সন্তান প্রসব ক‌রে‌ছেন ওই নারী।’

ওই প্রসূতির নাম ঝুমুর আক্তার। ২৫ বছরের এই নারী বরিশাল সদর উপজেলার রায়পাশা কড়াপু‌র ইউনিয়‌নের বাসিন্দা আব্দুল খালেকের মেয়ে ও নগরীর গড়িয়ার পাড় এলাকার বাসিন্দা মো. হারিচের স্ত্রী।

ল‌ঞ্চে ছিলেন ঝুমুরের মা মিনু বেগমও। কল্পনাতেই ছিল না তার নাতি লঞ্চে জন্ম নেবে। কারণ, আল্ট্রাস‌নোগ্রামের রিপোর্ট অনুযায়ী ডে‌লিভা‌রির তারিখ আরও ১৮ দিন পরে ছি‌ল। অবশ্য এতে অখুশি নন নানি, বরং লঞ্চে নাতি জন্ম নেয়ার ঘটনাটি তার কাছে এখন স্বপ্নের মতোই।

তিনি বলেন, ‘আমার মে‌য়ে জামালপু‌রে স্বামীর সঙ্গেই থা‌কে। এত‌দিন সেখা‌নেই ছি‌ল। ডে‌লিভা‌রির সময় ঘ‌নি‌য়ে আসায় মে‌য়ে‌কে ব‌রিশা‌লে আনার জন্য রওনা হই। এর ম‌ধ্যেই পুত্রসন্তা‌নের জন্ম দি‌য়ে‌ছে আমার মে‌য়ে। আমরা অ‌নেক খু‌শি।

‘কল্পনায়ও ভা‌বি নাই যে আমার না‌তির জন্ম ল‌ঞ্চে ব‌সেই হ‌বে। যেখা‌নে ডাক্তা‌রের হিসাব ও আল্ট্রাস‌নোগ্রাম অনুযায়ী ডে‌লিভা‌রির ১৮ দিন বা‌কি ছি‌ল, সেখা‌নে ল‌ঞ্চে বাচ্চা হওয়াটা স্ব‌প্নের মতো আমা‌দের কা‌ছে। আমার না‌তির ডে‌লিভা‌রি‌তে যে সাহায্য কর‌ছে, সে নাম রাখ‌ছে ইব্রা‌হিম।’

আজীবন ভাড়া ফ্রি

সুস্থ ও স্বাভাবিকভাবেই শিশুটির জন্ম হয়েছে জানিয়ে লঞ্চের সহকারী সুপারভাইজার হৃদয় খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বর্তমানে নবজাতক সুস্থ আছে; তবে প্রসূতি একটু অসুস্থ। তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা দিতে হবে। এ জন্য লঞ্চ দ্রুত চালানো হয়েছে।’

সদ্য ভূমিষ্ঠ ফুটফুটে ইব্রা‌হিমকে লঞ্চ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে উপহার হিসাবে ১০ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে জানিয়ে সুপারভাইজার বলেন, ‘পাশাপাশি নবজাতক ও তার বাবা-মায়ের জন্য আজীবন লঞ্চে চলাচলও ফ্রি করে দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।’

এমন ঘটনায় আপ্লুত তিনিও। বলেন, ‘লঞ্চের ডেকের ওই যাত্রীর সঙ্গে তার মা, ভাই ও ভাবি ছিলেন। চিকিৎসকের দেয়া তারিখ অনুযায়ী নাকি ডেলিভারির সময় আরও কয়েক দিন পরে ছিল। তাই তারা লঞ্চে রওনা দিয়েছি‌লেন। কিন্তু লঞ্চেই সন্তানের জন্ম হয়েছে। এতে আমরা খুব খু‌শি, মা‌লিকও অ‌নেক খু‌শি হ‌য়ে‌ছেন।’

মন্তব্য

p
উপরে