× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Battery powered rickshaw thief cop game
hear-news
player
print-icon

ব্যাটারিচালিত রিকশার চোর-পুলিশ খেলা

ব্যাটারিচালিত-রিকশার-চোর-পুলিশ-খেলা
নিষেধাজ্ঞার পরও স্থানীয় নেতা ও পুলিশের যোগসাজশে রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলছে। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
রাজধানীর বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রত্যেক এলাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা চলছে। চালকরা বলছেন, পুলিশ আটক করলে মালিকরা আবার ছাড়িয়ে এনে রাস্তায় নামাচ্ছেন এসব রিকশা। পুলিশ বলছে, এত রিকশা আটকে রাখার মতো জায়গা তাদের নেই। তাদের জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া ছাড়া উপায় নেই।

হাইকোর্ট, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও সিটি করপোরেশনের নিষেধাজ্ঞার পরও স্থানীয় নেতা ও পুলিশের যোগসাজশে রাজধানীতে ব্যাটারিচালিত রিকশা চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

চালক ও সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, বিভিন্ন অভিযানে এই ব্যাটারিচালিত রিকশাগুলো আটক করা হলেও নির্দিষ্ট টাকায় তা ছাড়িয়ে এনে আবার সড়কে নামাচ্ছেন মালিকরা।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, রাজধানীতে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ এই ব্যাটারিচালিত রিকশাগুলো। কিন্তু নজরদারির অভাবে রাজধানী দাপিয়ে বেড়াচ্ছে এই অবৈধ যান।

পুলিশ বলছে, পর্যাপ্ত জায়গা না থাকায় এই রিকশাগুলো কোথাও জব্দ করে রাখা যাচ্ছে না। বরং নির্দিষ্ট জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে।

২০১৪ সালে ঢাকা ও চট্টগ্রামে ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। এরপর ২০১৭ সালে এসব পরিবহন বন্ধে আরেক দফা নির্দেশনা আসে হাইকোর্টের। ২০২১ সালের ১৫ ডিসেম্বর অটোরিকশা বন্ধ ও আমদানি নিষিদ্ধ করে আবারও নির্দেশনা দেয় হাইকোর্ট।

ব্যাটারিচালিত রিকশার চোর-পুলিশ খেলা

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাজধানীতে দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ ব্যাটারিচালিত রিকশাগুলো। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল ২০২১ সালের ২০ জুন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে এসব রিকশা-ভ্যান বন্ধের নির্দেশ দেন। বিভিন্ন সময়ে সিটি করপোরেশনও এগুলো বন্ধে অভিযান পরিচালনা করে আসছে।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করা সংগঠন রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাটারিচালিত রিকশা খুব দ্রুত চলে। তাই নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ে। নিয়ম হচ্ছে যারা পঙ্গু, তারা সরকারি অনুমোদন নিয়ে এই রিকশা চালাতে পারবেন। এর বাইরে কেউ চালাতে পারবেন না।’

মুগদা, বাসাবো, হাজারীবাগ, জিগাতলা, কামরাঙ্গীর চর, দক্ষিণখান, মোহাম্মদপুর, তেজগাঁও, বাড্ডা, জুরাইন, যাত্রাবাড়ী, ডেমরা, শনির আখড়া, ডেমরা, বাসাবো ও মাদারটেকসহ রাজধানীর ছোট বড় বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রত্যেক এলাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশা উল্লেখযোগ্য পরিমাণে চলছে।

মেরুল বাড্ডা এলাকার অটোরিকশাচালক মামুনুর রশিদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মালিকে চালায়, তাই আমরা চালাই। মালিক বলে রিকশা তুই নিয়া যা। যা কিছু হয়, আমরা দেখব।’

ব্যাটারিচালিত রিকশার চোর-পুলিশ খেলা

বিভিন্ন অভিযানে ব্যাটারিচালিত রিকশাগুলো আটক করা হলেও নির্দিষ্ট টাকায় তা ছাড়িয়ে এনে আবার সড়কে নামাচ্ছেন মালিকরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/ নিউজবাংলা

পুলিশ জব্দ করে কিনা জানতে চাইলে এই চালক বলেন, ‘পুলিশে ধরে। কয়েক দিন আগেই ধরা খাইছি। ৭২০ টাকা দিয়ে ছাড়ায় নিয়া আসছি। লিংক রোডের আনসার ক্যাম্পে নিয়ে যায়। র‍্যাকার করে। পরে টাকা দিলে ছাইড়া দেয়। টাকা না দিলে পুলিশ রিকশা নিয়া ডাম্পিংয়ে দেয়। আমাদের এলাকার গাড়িতে কোনো কার্ড করা লাগে না।

‘মধ্যবাড্ডা, গুদারাঘাট, পুলিশ প্লাজা ও মেরুল বাড্ডা এলাকার ভেতরে চালাই। মেইন রোডে যাই না। মাঝে মাঝে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়া শাহজাদপুর যাই।’

নিষিদ্ধ হওয়ার পরও কেন অটোরিকশা চালাচ্ছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কী করব বলেন। পেট তো চালাতে হবে। মালিক দেখতেছে চললেই আমার টাকা। আমরা দেখতেছি, চালাইলে আমরাও ভালো চলতে পারি। তাই চালাই। প্রায় পাঁচ বছর চালাইতেছি অটোরিকশা। কখনও ডাম্পিংয়ে যাইতে হয় নাই। তবে আমাদের গাড়ি থানায় গেছিল। ওখান থাইকা মালিক ছাড়ায় আনছে। মালিকদের সঙ্গে পুলিশের লিংক আছে। তারাই ছাড়ায়ে আনে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিকের গুলশান বিভাগের উপপুলিশ কমিশনার রবিউল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাটারিচালিত রিকশা আমরা ডাম্পিংয়ে নিয়ে যাই বা কোনো একটা জায়গায় নিয়ে গিয়ে র‍্যাকার ফি রাখি। এটি একটি শাস্তিমূলক ব্যবস্থা।’

ব্যাটারিচালিত রিকশার চোর-পুলিশ খেলা

যেহেতু অটোরিকশা অবৈধ, তাহলে এই রিকশা ডাম্পিংয়ে না দিয়ে র‍্যাকার ফি দিয়ে ছেড়ে দেয়া হচ্ছে কেন– প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘আমাদের রিকশা রাখার জায়গা নাই। আমরা কোথায় রাখব এত রিকশা। এ কারণেই জরিমানা করে ছেড়ে দিতে হচ্ছে। প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০টা রিকশা ধরলে সেটা রাখার জায়গা থাকতে হবে আমার।’

অটোরিকশা বন্ধে সমাধান কী– জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি। সবাই মিলে কাজ করছি। আমাদের ট্রাফিক পুলিশের সামনে কেউ চলতে পারছে না।’

মোহাম্মদপুর বসিলা এলাকার অটোরিকশাচালক মো. বাবুল বলেন, ‘পুলিশ ধরলে ডাম্পিংয়ে দেয়। ডাম্পিংয়ে দিলে লিখে দেয় ১২০০ টাকা। কিন্তু ছাড়াতে গেলে লাগে ৪২০০ টাকা। অনেক সময় ধরলে পুলিশকে ৫০০-১০০০ টাকা দিলে ছেড়ে দেয়। চোর-পুলিশ খেলার মতো চলতেছি আমরা।

‘মোহাম্মদপুরের ভেতরে চললে কার্ড কইরা নিতে হয়। পুলিশের চাপ বসিলায় কম, তাই এখানে চালাই। চাপ বাড়লে ওইপার চইলা যাই। ওই পারে কেউ ঝামেলা করে না।’

অভিযোগ আছে, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশের যোগসাজশে এই অবৈধ অটোরিকশা চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বসিলা এলাকার এক অটোরিকশা চালক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বসিলা এলাকায় ছাত্রলীগ কার্ড দেয়। ওরা থানায় থানায় টাকা দেয়। কার্ড থাকলেও পুলিশ ধরে, না থাকলেও পুলিশ ধরে। তখন ওরা (স্থানীয় নেতা) রিকশা ছাড়ায় আনে। ছাড়াইতে ৪ হাজার থেকে ৪২০০ টাকা লাগে।’

ব্যাটারিচালিত রিকশা চলছে এটা স্বীকার করে ট্রাফিকের তেজগাঁও বিভাগের অতিরিক্ত উপকমিশনার এস এম শামীম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নির্দেশনা আমরা অক্ষরে অক্ষরে পালনের চেষ্টা করছি। আমাদের বিভাগের প্রধান সড়কে এই রিকশা দেখতে পাবেন না। প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০টা রিকশা ধরে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছি। এর পরেও পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে ফিডার রোড দিয়ে দুই-একটা রিকশা চলে।’

ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও পুলিশ টাকা নিয়ে রাস্তায় চলার অনুমতির ‘কার্ড’ দেয় বলে অভিযাগ আছে উল্লেখ করা হলে তিনি বলেন, ‘যদি আপনি আমাকে প্রমাণসহ দিতে পারেন এর সঙ্গে পুলিশ জড়িত আছেন, আমি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলে তদন্ত করে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব। এর সঙ্গে পুলিশের সংশ্লিষ্টতার কোনো সুযোগ নাই।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তেজগাঁও বিভাগের এক ট্রাফিক সার্জেন্ট নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ব্যাটারিচালিত রিকশা ধরে ঘটনাস্থলে ছেড়ে দিলে ডাম্পিং ফি ১২০০ টাকা। আর ডাম্পিঙে পাঠালে সেখান থেকে ছাড়াতে লাগে ৪২০০ টাকা। মাঝে মাঝে প্রধান সড়কে চলে আসলে মানবিক কারণে এমনিতেই ছেড়ে দেই। মাঝে মাঝে একটু-আধটু পানিশমেন্ট করে র‍্যাকার বিল করি। যদিও র‍্যাকার বিল করার তেমন কোনো নিয়ম-কানুন নাই। তবে অটো রিকশা ডাম্পিংয়ের নিয়ম আছে।’

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করা সংগঠন রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধ না হওয়ার কারণ হিসেবে সরকার দলীয় নেতাদের প্রভাবকে চিহ্নিত করেন।

তিনি বলেন, ‘তারা চাঁদা দিয়েই এটা চালাচ্ছে। ক্ষমতাসীন দলের লোকেরাই চাঁদাবাজি করে। অন্য দল তো আর চাঁদাবাজির সুযোগ পায় না। চাঁদাবাজি বন্ধ না করলে এটা বন্ধ করা সম্ভব নয়। কিন্তু এটা বন্ধ করা দরকার।’

তবে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশ যে টাকা নেয় সেটা জরিমানার টাকা। এ ছাড়া রিকশা ছেড়ে না দিয়ে আটকে রাখারও সুযোগ নাই বলে জানান তিনি।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমরা জরিমানা করতে পারি। জরিমানা দেয়ার পরে আপনার গাড়ি আটকে রাখার আমাদের এখতিয়ার নাই। জরিমানা পরিশোধ করতেছে, আবার রাস্তায় নামতেছে, আমরা আবার ধরে জরিমানা করতেছি। বিষয়টা আইনগত প্রক্রিয়ার মধ্যেই আছে। প্রধান সড়কে যেন এগুলো (অটোরিকশা) না আসতে পারে, সেই চেষ্টা করে যাচ্ছি। বেশ কিছু জায়গায় পঙ্গু মানুষজন এই ধরনের গাড়ি চালানোর জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছিলেন। আমরা তাদের অনুমতি দিয়েছি। এইটার সুযোগ নিচ্ছে কিছু মানুষ।’

ডিএমপি কমিশনার বলেন, ‘ডাম্পিংয়ে নিয়ে গেলে তো জরিমানা দিতে হবে। ৪২০০ টাকা যেটা দেয় সেটা তাকে রসিদ দিয়েই নেয়া হয়। এটা ঘুষের কিছু না। জরিমানার টাকা দিয়েই রিকশা ছাড়িয়ে নিয়ে আসছে।’

কী বলছে সিটি করপোরেশন

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত সচিব) সেলিম রেজা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অটোরিকশা ঢাকা মহানগরীতে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমরা মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছি। বিআরটিএ এবং পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে এগুলো যাতে কেউ চালাতে না পারে সমন্বিত চেষ্টার মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি।

‘আমরা একটা নিতিমালা করেছি। সেই নিতিমালার আলোকে রিকশাগুলোকে আমরা লাইসেন্স দেব। তাদের আমরা ডিজিটাল নেমপ্লেট দেব। এই বছরেই আমরা ২ লাখ রিকশাকে লাইসেন্স দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছি।’

এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত সচিব) ফরিদ আহম্মদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পর্যায়ক্রমে আমরা রিকশার লাইসেন্স দিচ্ছি। প্রতি সপ্তাহে আমরা অভিযান পরিচালনা করছি যাতে লাইসেন্স বহির্ভূত রিকশা না চলে। প্রতি সপ্তাহেই নতুন নতুন লাইসেন্স দিচ্ছি। আইনবহির্ভূত রিকশা পুলিশের সহায়তা নিয়ে ডাম্পিংয়ে দিচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
‘রিকশা গার্ল’-এর প্রিমিয়ার নিউ ইয়র্কে
গোপনাঙ্গে আঘাত করে অটোরিকশার চালককে হত্যা চোর চক্রের
মেয়াদোত্তীর্ণ অটোরিকশা যেন এক মারণফাঁদ
সিএনজি অটোরিকশার চালক-মালিকের তথ্য পাবেন যাত্রী
অমিতাভের ‘রিকশা গার্ল’ পুরস্কৃত, নতুন সিনেমা অনুদানে জমা

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Why the decision to increase the price of fuel is not illegal

‘জ্বালানির দাম বাড়ানো কেন অবৈধ নয়’

‘জ্বালানির দাম বাড়ানো কেন অবৈধ নয়’ জ্বালানির দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ নয় জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট। ফাইল ছবি
সম্প্রতি ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনসহ জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন আইনজীবী ইউনুছ।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সরকারি সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ নয় জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট।

মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

রিটের পক্ষে শুনানি করেন ইউনুছ আলী আকন্দ।

সম্প্রতি ডিজেল, পেট্রোল ও অকটেনসহ জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন আইনজীবী ইউনুছ।

রিটে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদসচিব, উপসচিব ও বিইআরসির চেয়ারম্যানকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

গত ৫ আগস্ট দেশে জ্বালানি তেলের দাম আরেক দফা বাড়ানো হয়। এক লাফে ডিজেল ও কেরোসিনে বাড়ানো হয় লিটারে ৩৪ টাকা। নতুন করে ডিজেল ও কেরোসিন এখন ভোক্তাকে কিনতে হচ্ছে ১১৪ টাকা করে।

অন্য দিকে অকটেনে প্রতি লিটারে বাড়ানো হয় ৪৬ টাকা। এখন প্রতি লিটার অকটেন ১৩৫ এবং পেট্রোল ৪৪ টাকা বেড়ে হয়েছে ১৩০ টাকা। এই হিসাবে ডিজেলের দাম বাড়ানো হয় ৪২ দশমিক ৫ শতাংশ আর অকটেন-পেট্রোলে ৫১ শতাংশ।

বৈশ্বিক বর্তমান প্রেক্ষাপটে বিশ্ববাজারে জ্বালানির মূল্য বেড়ে যাওয়ায় এমন সিদ্ধান্তের কথা জানায় সরকার। জ্বালানি তেলের নতুন এই দাম কার্যকর হয় সেদিন রাতেই।

আরও পড়ুন:
তেলের দাম কমানোর দাবিতে ২৫ আগস্ট হরতাল
তেলের দাম কমানোর মিছিল শাহবাগে আটকাল পুলিশ
বিশ্ববাজারে অশোধিত তেলের ব্যারেল ৯০ ডলারের নিচে
লোডশেডিং বিদায় সেপ্টেম্বরে: প্রতিমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police officer Muharram was removed

এমপি শম্ভুর সঙ্গে তর্কাতর্কি: অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহররম প্রত্যাহার

এমপি শম্ভুর সঙ্গে তর্কাতর্কি: অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহররম প্রত্যাহার ছাত্রলীগের কর্মীদের মারধরের কারণ জানতে চাওয়ায় এমপি শম্ভু ও এএসপি মহররমের মধ্যে উচ্চবাচ্য হয়। ছবি: নিউজবাংলা
ডিআইজি বলেন, `বরগুনার ঘটনায় দেশজুড়ে আলোচনার সৃষ্টি করেছে। ওই ঘটনায় পুলিশের পেশাদারিত্ব কতটা ছিল, ঘটনাস্থলে কী কী হয়েছে তার সব কিছুই তদন্ত করা হবে। ছাত্রলীগের দুটি ধারার এক পক্ষ পুলিশের প্রশংসা করেছে, আরেক পক্ষ সমালোচনা করেছে। পুলিশ তার নিরপেক্ষ অবস্থান থেকে সব কিছুর তদন্ত করবে।’

বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের মধ্যে কর্মী‌দের পুলিশের লাঠিপেটা এবং বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর সঙ্গে তর্কাতর্কির ঘটনায় আলোচিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এএসপি) মহররম আলীকে দায়িত্ব থেকে সরি‌য়ে বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয়ে যুক্ত করা হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে নিউজবাংলাকে তথ্য নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছেন ব‌রিশাল রেঞ্জের ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান। তিনি বলেন, ‘সা‌র্বিক দিক বি‌বেচনা ও তদ‌ন্তের স্বা‌র্থে এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হ‌য়ে‌ছে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিআইজি বলেন, `বরগুনার ঘটনায় দেশজুড়ে আলোচনার সৃষ্টি করেছে। ওই ঘটনায় পুলিশের পেশাদারিত্ব কতটা ছিল, ঘটনাস্থলে কী কী হয়েছে তার সব কিছুই তদন্ত করা হবে।

‘ছাত্রলীগের দুটি ধারার এক পক্ষ পুলিশের প্রশংসা করেছে, আরেক পক্ষ সমালোচনা করেছে। পুলিশ তার নিরপেক্ষ অবস্থান থেকে সব কিছুর তদন্ত করবে।’

এর আগে সোমবার দুপুর ১২টার দিকে বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কমপ্লেক্সে তার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে ফেরার সময় শিল্পকলা একাডেমির সামনে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর পদবঞ্চিত কয়েকজন হামলা চালায়। এ সময় দুই গ্রুপের নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষের মধ্যেই পুলিশ ছাত্রলীগের কর্মিীদের বেধড়ক মারধর করে।

এ সময় বরগুনা-১ আসনের এমপি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, বরগুনার পৌর মেয়র কামরুল আহসান মহারাজ, জেলা যুবলীগের সভাপতি রেজাউল করিম এটম উপস্থিত ছিলেন।

জেলা যুবলীগের সভাপতি রেজাউল করিম এটম জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসার পর জেলা শিল্পকলা একাডেমির সামনে বের হন এমপি শম্ভু। এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহররম আলীর কাছে লাঠিপেটার কারণ জানতে চান তিনি।

তখন মহররম আলী বলেন, ‘স্যার আমাদের গাড়ি ভেঙেছে ছাত্রলীগ। তাদের আমরা ফুলের টোকাও দেইনি। আমাদের গাড়ি ভাঙল কেন জবাব দিয়ে যেতে হবে।’

এ সময় এমপি বলেন, ‘কী করবেন? আটকে পেটাবেন? আপনারা ওদের ঠ্যাকাননি কেন?’ এর উত্তরে ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘মামলা দেব।’

এ সময় সেখানে উপস্থিত আরেক অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এস এম তারেক রহমান বলেন, ‘স্যার আমরা ঠ্যাকাইতে গেলে বলপ্রয়োগ করতে হবে, সেটি আপনাদের জন্য ভালো হবে না।’

এমপি শম্ভুর সঙ্গে তর্কাতর্কি: অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহররম প্রত্যাহার

এমপি ও ছাত্রলীগের নেতাদের সঙ্গে পুলিশের তর্ক-বিতর্কের সময় সেখানে উপস্থিত জেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সবুজ মোল্লার বড় ভাই জসীম মোল্লা পুলিশের লাঠিপেটা নিয়ে এমপি শম্ভুর কাছে অভিযোগ করতে থাকেন।

একপর্যায়ে এমপির সামনেই জসীম মোল্লা পুলিশের সঙ্গে তর্কে জড়ালে এএসপি মহররম তাকে ধমক দিয়ে বলেন, ‘গাড়ি ভাঙচুরের অ্যাকশন হবে কিন্তু।’ জবাবে জসীম বলেন, ‘মামলা দেন, মারলেন কেন?’

এ কথা বলার সঙ্গে সঙ্গে এমপির সামনেই ডিবি পুলিশ জসীম মোল্লাকে পিটুনির পর আটক করে নিয়ে যেতে চান। এ সময় এমপি ফের বলেন, ‘মেরেছেন তো এবার ছেড়ে দেন।’ পরে পুলিশ জসীম মোল্লাকে ছেড়ে দেয়।

এ ঘটনায় এমপি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বলেন, ‘পুলিশ বলেছিল গাড়ি ভাঙচুরকারীকে তারা চিনতে পেরেছে। আমি বলেছি, যে ভাঙচুর করেছে, তাকে দেখিয়ে দিন। আমি তাকে আপনাদের হাতে সোপর্দ করব। আসলে তাদের (পুলিশের) উদ্দেশ্যই ছিল ছাত্রলীগের ছেলেদের মারবে। আমি তাদের মার ফেরানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু সেখানে এত পুলিশ আসছে, যে কমান্ড শোনার মতো কেউ ছিল না।’

এমপি শম্ভুর করা অভিযোগ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত ডিআইজি বলেন, ‘ঘটনার পর ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। সেখানে কী ঘটেছে ডিআইজি স্যারের নেতৃত্বে আমরা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছি। এমপি সাহেব মুরব্বি মানুষ। তার সঙ্গে পুলিশের কেউ অশোভন আচরণ করে থাকলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

এ বিষয়ে জানতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মহররম আলী ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) এস এম তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলতে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তারা কল রিসিভ করেননি। পরে সরকারি নম্বরের ওয়াটসঅ্যাপে খুদেবার্তা পাঠালেও সাড়া মেলেনি।

সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে উপস্থিত পুলিশের ভূমিকার বিষয়টি তদন্তে জেলা পুলিশের উচ্চপদস্থ তিন কর্মকর্তাকে নিয়ে সোমবার রাতে কমিটি গঠন করা হয়।

আরও পড়ুন:
ছাত্রলীগ কর্মীকে আটকে রেখে নির্যাতনের অভিযোগ
আন্দোলনকারীরা শিবির, বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি চাই: জয়
ব্যানারে ‘ছাত্রলীগ’ লেখার কথা বলেনি সাবেক নেতারা: বুয়েট ভিসি
বুয়েটে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের আয়োজন ঘিরে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
ছাত্রলীগ ও যুবদলের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Tipu Preeti murder 5 arrested with that bike pistol

টিপু-প্রীতি হত্যা: সেই বাইক-পিস্তলসহ গ্রেপ্তার ৫

টিপু-প্রীতি হত্যা: সেই বাইক-পিস্তলসহ গ্রেপ্তার ৫ আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়া আফরান জামাল প্রীতি হত্যা মামলার আরও পাঁচ আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ছবি: সংগৃহীত
ডিবিপ্রধান হারুর অর রশীদ দাবি করেন, টিপু হত্যার নির্দেশদাতা ছিলেন বিদেশে পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান ও মানিক। সেটি বাস্তবায়নে পরিকল্পনা করেন মূসা।

রাজধানীর মতিঝিলে আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম টিপু ও সামিয়া আফরান জামাল প্রীতি হত্যায় ব্যবহার করা মোটরসাইকেল, অস্ত্র ও গুলিসহ আরও পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মোটরসাইকেলের চালক শামীম হোসাইন ওরফে মোল্লা শামীম, তৌফিক হাসান ওরফে বাবু, সুমন হোসেন, এহতেশাম উদ্দিন চৌধুরী অপু ও শরিফুল ইসলাম হৃদয়।

ডিএমপির ডিবিপ্রধান হারুন অর রশীদ মঙ্গলবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘মামলাটি আমরা অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করছি। গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কাছে থেকে নম্বরবিহীন মোটরসাইকেল, দুটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়েছে। তারা স্বীকার করেছেন এই মোটরসাইকেল ও অস্ত্র হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত হয়েছে।’

হারুন অর রশীদ বলেন, ‘আমরা প্রথমেই মূল শুটার আকাশকে গ্রেপ্তার করেছি। এরপর তাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষ একে একে অন্যদের গ্রেপ্তার করা হয়।’

মামলাটিতে এই পাঁচজনসহ মোট ২৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানান ডিবিপ্রধান।

মোল্লা শামীম বেনাপোল হয়ে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন বলেও জানান তিনি। তাকে বেনাপোল থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

হত্যার নির্দেশদাতা জিসান ও মানিক, পরিকল্পনায় মূসা

ডিবিপ্রধান হারুর অর রশীদ দাবি করেন, টিপু হত্যার নির্দেশদাতা ছিলেন বিদেশে পলাতক শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসান ও মানিক। সেটি বাস্তবায়নে পরিকল্পনা করেন মূসা।

তিনি বলেন, ‘বোচা বাবু হত্যার পর টিপুর সঙ্গে মূসার একটা দ্বন্দ্ব ছিল। সেই দ্বন্দ্ব থেকেই মূসা এই হত্যাকাণ্ড ঘটনার পরিকল্পনা করে। সে পরিকলাপনা করে শামীমকে দায়িত্ব দেয়। আমরা মূসাকে ইন্টারপোলের সহযোগিতায় এরই মধ্যে ওমান থেকে দেশে এনেছি। তার উদ্দেশ্য ছিল টিপুকে দুনিয়া থেকে সরিয়ে দেয়া। জিসান ও মানিক বিদেশ বসে এই হত্যার সঙ্গে যোগ দিয়ে তাদের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে চেয়েছে। তারা মূলত জানান দিতে চেয়েছে যে, তারা এখনও রয়েছে।’

হত্যার সঙ্গে জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তার করা হবে বলেও জানান তিনি।

উদ্ধার অস্ত্র টিপু হত্যায় ব্যবহার হয়েছে কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আকাশ বলেছে, যে অস্ত্র দিয়ে হত্যা করা হয়েছে, সেটিই আমরা উদ্ধার করেছি। আমরা এই হত্যার ঘটনায় দ্রুততার সঙ্গে জিসান ও মানিককে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করব।’

ডিএমপির ডিবির মতিঝিল বিভাগ মামলাটি তদন্ত করছে।

গত ২৪ মার্চ রাতে শাহজাহানপুরের আমতলা এলাকায় মতিঝিল থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. জাহিদুল ইসলাম টিপু এজিবি কলোনি থেকে গাড়িতে বাসায় ফেরার সময় গুলি চালিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

সে সময় গাড়ির পাশে থাকা রিকশা আরোহী সামিয়া আফরান জামাল প্রীতি গুলিবিদ্ধ হন। তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ডিবিপ্রধান জানান, মোল্লা শামীমের দেয়া তথ্যে তৌফিক হাসান ওরফে বাবু ওরফে বিডি বাবু, সুমন হোসেন ও এহেতেশাম উদ্দিন চৌধুরী ওরফে অপুকে রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

তাদের দেয়া তথ্যে দক্ষিণ গোড়ান থেকে শরিফুল ইসলাম ওরফে হৃদয়কে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত দুটি বিদেশি পিস্তল, আট রাউন্ড গুলি, তিনটি ম্যাগাজিনসহ গ্রেপ্তার করা হয়।

বাবুর দেয়া তথ্যে পরে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি দক্ষিণ গোড়ান থেকে জব্দ করা হয়।

আরও পড়ুন:
শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার কৃষক
ফেসবুকে পিস্তলের ছবি দিয়ে গ্রেপ্তার যুবক
হামলায় আহত বৃদ্ধের মৃত্যু, গ্রেপ্তার ৪
পুলিশের ওপর হামলার মামলা: কারাগারে বিএনপি নেতা
টিপু-প্রীতি হত্যা: গ্রেপ্তার আরও ২ জন রিমান্ডে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
CID chief is Muhammad Ali

সিআইডি প্রধান হলেন মোহাম্মদ আলী

সিআইডি প্রধান হলেন মোহাম্মদ আলী সিআইডি প্রধান হয়েছেন মোহাম্মদ আলী মিয়া।
সিআইডির মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান রহমান বলেন, ‘মঙ্গলবার অর্ডার হয়েছে। স্যার কয়েকদিনের মধ্যেই যোগদান করবেন।’

পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) প্রধান হয়েছেন মোহাম্মদ আলী মিয়া।

মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপ সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস সাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

মোহাম্মদ আলী মিয়া ট্যুরিস্ট পুলিশের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমানের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

গত ৩০ জুলাই অবসরে যান সিআইডির মাহবুবুর রহমান। চাকরির মেয়াদ শেষ হওয়ার পর আরও এক বছরের জন্য গত বছরের ১২ জুলাই চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পেয়েছিলেন তিনি।

সিআইডির মুখপাত্র অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজাদ রহমান রহমান বলেন, ‘মঙ্গলবার অর্ডার হয়েছে। স্যার কয়েকদিনের মধ্যেই যোগদান করবেন।’

আরও পড়ুন:
জামিন হয়নি সিআইডির ৩ সদস্যের
ডাকাতি মামলায় সিআইডির এসআই রিমান্ডে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chhatra League clash Three member committee to probe

ছাত্রলীগ কর্মীদের বেধড়ক পিটুনির তদন্তে পুলিশের কমিটি

ছাত্রলীগ কর্মীদের বেধড়ক পিটুনির তদন্তে পুলিশের কমিটি
বরিশাল রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি কে এম এহসান উল্লাহ বলেন, ‘ছাত্রলীগের সংঘর্ষে পুলিশের লাঠিপেটার ঘটনা তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি হয়েছে। তদন্তের স্বার্থে কমিটির কারও নাম প্রকাশ করা যাচ্ছে না।’

বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের মধ্যে পুলিশের লাঠিপেটার ঘটনায় তিন সদস্যের কমিটি করা হয়েছে।

সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে উপস্থিত পুলিশের ভূমিকার বিষয়টি তদন্তে জেলা পুলিশের উচ্চপদস্থ তিন কর্মকর্তাকে নিয়ে সোমবার রাতে কমিটি গঠন করা হয়।

নিউজবাংলাকে মঙ্গলবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বরিশাল রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি কে এম এহসান উল্লাহ। তবে কমিটির সদস্যদের নাম প্রকাশ করেননি তিনি।

বরগুনা শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনের সামনে সোমবার দুপুরে জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের পর সরকার সমর্থক ছাত্র সংগঠনের নেতা-কর্মীদের বেধড়ক পেটায় পুলিশ।

এ সময় সেখানে বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু উপস্থিত ছিলেন। বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা কয়েকটি মোটরসাইকেল ও পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করেন।

এ ঘটনায় এমপি ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বলেন, ‘পুলিশ বলেছিল, গাড়ি ভাঙচুরকারীকে তারা চিনতে পেরেছে। আমি বলেছি, যে ভাঙচুর করেছে, তাকে দেখিয়ে দিন। আমি তাকে আপনাদের হাতে সোপর্দ করব। আসলে তাদের (পুলিশের) উদ্দেশ্যই ছিল ছাত্রলীগের ছেলেদের মারবে। আমি তাদের মার ফেরানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু সেখানে এত পুলিশ আসছে যে কমান্ড শোনার মতো কেউ ছিল না।’

তিনি আরও বলেন, ‘সোমবার দুপুরে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর নির্বিচারে লাঠিপেটা করেছে পুলিশ। পুলিশ কর্মকর্তা মহররম ছিলেন সেখানে। তিনি অনেক ভুল করেছেন।

‘যেখানে আমি উপস্থিত, সেখানে তিনি এমন কাজ করতে পারেন না। আমি তাকে মারপিট করতে নিষেধ করেছিলাম। তারা (পুলিশরা) আমার কথা শোনেননি।’

এমপি শম্ভুর করা অভিযোগ প্রসঙ্গে অতিরিক্ত ডিআইজি বলেন, ‘ঘটনার পর ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। সেখানে কী ঘটেছে ডিআইজি স্যারের নেতৃত্বে আমরা বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছি। এমপি সাহেব মুরব্বি মানুষ। তার সঙ্গে পুলিশের কেউ অশোভন আচরণ করে থাকলে আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

এ বিষয়ে জানতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম) মহররম আলী ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) এস এম তারেক রহমানের সঙ্গে কথা বলতে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তারা কল রিসিভ করেননি। পরে সরকারি নম্বরের ওয়াটসঅ্যাপে খুদেবার্তা পাঠালেও সাড়া মেলেনি।

যা ঘটেছিল

বঙ্গবন্ধুর ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কমপ্লেক্সে তার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে ফেরার সময় শিল্পকলা একাডেমির সামনে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর পদবঞ্চিত কয়েকজন হামলা চালায়। এ সময় দুই গ্রুপের নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। পরে পুলিশ লাঠিপেটা করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এ ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজাউল কবির রেজা জানান, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শিল্পকলায় প্রবেশের সময় হামলাকারীরা ছাদ থেকে তাদের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতে থাকে। এ কারণে পুলিশের গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশ লাঠিপেটা শুরু করে।

আট বছর পর গত ১৭ জুলাই বরগুনা শহরের সিরাজ উদ্দীন টাউন হল মিলনায়তনে বরগুনা জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন হয়। এরপর ২৪ জুলাই রাতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির অনুমোদন দেন।

এতে জেলা কমিটির সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকসহ ৩৩ সদস্যের নাম প্রকাশ করা হয়। এর পর থেকে নতুন কমিটি প্রত্যাখ্যান করে বরগুনা শহরে পদবঞ্চিতরা বিভিন্ন সময় বিক্ষোভ মিছিল ও ভাঙচুর চালায়।

আরও পড়ুন:
আন্দোলনকারীরা শিবির, বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি চাই: জয়
ব্যানারে ‘ছাত্রলীগ’ লেখার কথা বলেনি সাবেক নেতারা: বুয়েট ভিসি
বুয়েটে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের আয়োজন ঘিরে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ
ছাত্রলীগ ও যুবদলের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া
বাসায় বিচার দেয়ায় চবিতে ৪ ছাত্রলীগ নেত্রীর মারামারি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There are excesses in Barguna IGP will take action Home Minister

বরগুনায় বাড়াবাড়ি হয়েছে, ব্যবস্থা নেবেন আইজিপি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বরগুনায় বাড়াবাড়ি হয়েছে, ব্যবস্থা নেবেন আইজিপি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরগুনায় পুলিশের ‍পিটুনির শিকার হন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। ফাইল ছবি
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বরগুনার ঘটনায় বাড়াবাড়ি করেছে। এটা কেন হলো আইজিপিকে বলা হয়েছে, ব্যবস্থা নিতে। তদন্ত হয়ে আসুক। আমার কাছে মনে হয়েছে, এতটা বাড়াবাড়ি ঠিক হয়নি। এটা ঘটানো উচিত হয়নি।’

বরগুনায় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের গণহারে পিটুনির ঘটনায় পুলিশের বাড়াবাড়ি ছিল বলে মনে করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। এই ঘটনায় পুলিশের মহাপরিদর্শক বা আইজিপি বেনজীর আহমেদকে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

জাতীয় শোক দিবসের আয়োজনে সোমবার বরগুনায় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের পুলিশের ‍পিটুনির পর দিন সচিবালয়ে সংবাদমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে কথা বলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

সচিবালয়ে মঙ্গলবার ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হ্যাসের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বরগুনার ঘটনা আমরা যেটা দেখেছি, এটা বাড়াবাড়ি করেছেন। অহেতুক কেন এমন হলো এটা আইজি সাহেবকে বলা হয়েছে। তিনি এটার ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

‘দেখুন এটি আমি ফেসবুকে দেখেছি, আপনারা যেমন দেখেছেন। এটা একটা তদন্ত কমিটি হয়েছে, এটা শেষ হয়ে আসুক। আমার কাছে মনে হয়েছে, এটা এতটা বাড়াবাড়ি হওয়া উচিত হয়নি। কার বাড়াবাড়ি সেটা ইনভেস্টিগেশনে বের হবে। আমি বলছি, যেটা হয়েছে এটা হওয়া উচিত হয়নি। এটা না হলেও পারত। এটা এভাবে হওয়া উচিত হয়নি।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে বরগুনায় বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কমপ্লেক্সে তার প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে ফেরার সময় শিল্পকলা একাডেমির সামনে ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর পদবঞ্চিত কয়েকজন হামলা চালান। এ সময় দুই পক্ষের নেতা-কর্মীরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

পরে পুলিশ ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের বেধড়ক লাঠিপেটা করে। এর ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর বিষয়টি নিয়ে তুমুল আলোচনা শুরু হয়েছে।

ঘটনাস্থলে উপস্থিত বরগুনা-১ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভুর সঙ্গে এক পুলিশ কর্মকর্তার তর্কাতর্কির ভিডিওটিও ব্যাপক আলোচনা তৈরি করেছে।

ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীরা তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে এর বিচার চাইছেন। যদিও এর মধ্যেই বরগুনা ছাত্রলীগের সভাপতি বিবৃতি দিয়ে পুলিশের পক্ষ নিয়েছেন। তবে জেলা আওয়ামী লীগ এর নিন্দা জানিয়েছে।

এদিকে জেলা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের মধ্যে পুলিশের লাঠিপেটার এ ঘটনায় তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে উপস্থিত পুলিশের ভূমিকার বিষয়টি তদন্তে জেলা পুলিশের উচ্চপদস্থ তিন কর্মকর্তার সমন্বয়ে সোমবার রাতে এ কমিটি হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘সবার স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও খাদ্যের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে’
‘বিএনপি বিশৃঙ্খলা করলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বসে থাকবে না’
বিএনপির শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বাধা নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Husband arrested for killing housewife by stone

গৃহবধূকে ‘শিলের আঘাতে হত্যা’, স্বামী আটক

গৃহবধূকে ‘শিলের আঘাতে হত্যা’, স্বামী আটক গৃহবধূ ফারজানা আক্তার। ছবি: সংগৃহীত
ফতুল্লা মডেল থানার উপপরিদর্শক মোস্তফা কামাল খান বলেন, ‘ঘটনার পরপরই এলাকাবাসী রুবেল মিয়াকে আটক রাখে। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

পারিবারিক কলহের জেরে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় গৃহবধূকে শিলের আঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত রুবেল মিয়াকে আটক করেছে পুলিশ।

সদর উপজেলার পশ্চিম রসুলপুর এলাকায় মঙ্গলবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ১৯ বছরের ফারজানা আক্তার পশ্চিম রসুলপুর এলাকার নুর নবীর মেয়ে।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল হক।

নিহতের স্বজন ও প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে তিনি জানান, একই এলাকার রুবেলের সঙ্গে ছয় মাস আগে বিয়ে হয় ফারজানার। বিয়ের পর থেকেই তাদের মধ্যে কলহ চলছিল।

এর জেরে একাধিকবার স্থানীয়ভাবে বিচার-সালিশও হয়েছে তাদের। গত সোমবারও সালিশ হয় তাদের নিয়ে। কিন্তু আজ ভোরে আবারও তাদের মধ্যে ঝগড়া হলে শিল দিয়ে ফারজানার মুখে ও মাথায় আঘাত করে গুরুতর আহত করেন রুবেল।

এ সময় ফারজানার চিৎকারে আশপাশের লোকজন গিয়ে তাকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ফারজানার মৃত্যু হয়।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘সকালে গৃহবধূর স্বজনরা তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় জরুরি বিভাগে নিয়ে আসে। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মরদেহ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।’

ফতুল্লা মডেল থানার উপপরিদর্শক মোস্তফা কামাল খান বলেন, ‘ঘটনার পরপরই এলাকাবাসী রুবেল মিয়াকে আটক রাখে। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে তাকে আটক করে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

আরও পড়ুন:
নৈশপ্রহরীকে হত্যার পর ডাকাতি 
প্রাথমিকের শ্রেণিকক্ষে ঝুলছিল কলেজছাত্র
স্ত্রী হত্যা মামলায় যুবক গ্রেপ্তার
স্ত্রীকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
হোমিও চিকিৎসক ও ব্যবসায়ী হত্যায় ৬ জনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

p
উপরে