× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Five hijackers in jail
hear-news
player
print-icon

পাঁচ ছিনতাইকারী কারাগারে

পাঁচ-ছিনতাইকারী-কারাগারে
পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, গত ৩০ মার্চ থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত সিংড়া ও বড়াইগ্রাম উপজেলায় মোটর সাইকেলসহ টাকা ছিনতাইয়ের তিনটি ঘটনা ঘটে। মামলার পর পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে।

নাটোরে পাঁচ ছিনতাইকারীকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানোর কথা জানিয়েছে পুলিশ।

সিংড়া ও বড়াইগ্রাম আমলি আদালতের মাধ্যমে তাদের কারাগারে পাঠানো হয়।

ওই পাঁচজন হলেন সিংড়া উপজেলার নাছিয়ারকান্দি এলাকার আব্দুল করিম, কালিনগর গ্রামের সোহেল রানা, শিবপুর গ্রামের রাজীব ওরফে রাজু ও কলম লক্ষ্মীপুর গ্রামের ইয়াকুব আলী এবং পাবনার সুজানগর উপজেলার নওয়াগ্রাম এলাকার রইচ উদ্দিন।

জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে শুক্রবার দুপুরে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে বিষয়টি জানানো হয়।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, গত ৩০ মার্চ থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত সিংড়া ও বড়াইগ্রাম উপজেলায় মোটর সাইকেলসহ টাকা ছিনতাইয়ের তিনটি ঘটনা ঘটে। মামলার পর পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে।

এসপি বলেন, ‘তারা অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ছিনতাই করতেন। তাদের কাছ থেকে চারটি মোটরসাইকেল, ৫০ হাজার টাকা ও দুটি চাপাতি জব্দ করা হয়েছে। বুধবার চারজনকে ও শুক্রবার একজনকে আদালতে তোলা হলে বিচারক তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।’

আরও পড়ুন:
‘পাইলট-ঈগল’ মিলে ছিনতাই, টার্গেট রিকশাযাত্রী
ছুরি-চাকুসহ কক্সবাজারে ৪ ‘ছিনতাইকারী’ আটক
পল্টনে বিএনপি নেতাকে ছুরিকাঘাত
এসএ পরিবহনের হেলপারকে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাত
রাজধানীতে চাঁদাবাজ-ছিনতাইকারী চক্রের ৫৩ সদস্য গ্রেপ্তার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Judge Mia wants Tk 10 crore compensation

১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চান জজ মিয়া

১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চান জজ মিয়া ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ফাঁসানো হয় জজ মিয়াকে। ছবি: নিউজবাংলা
নোটিশটি স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশপ্রধান, তখনকার স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১১ জনকে পাঠানো হয়েছে। ১৫ দিনের সময় দিয়ে নোটিশে বলা হয়েছে, এ সময়ের মধ্যে নোটিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা না নিলে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

মিথ্যা স্বীকারোক্তি নিয়ে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় ফাঁসানোর ঘটনায় ১০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ চেয়ে নোটিশ দিয়েছেন সেই জজ মিয়া।

বৃহস্পতিবার জজ মিয়ার পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ হুমায়ন কবির এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশটি স্বরাষ্ট্রসচিব, পুলিশপ্রধান, তখনকার স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরসহ ১১ জনকে পাঠানো হয়েছে।

১৫ দিনের সময় দিয়ে নোটিশে বলা হয়েছে, এ সময়ের মধ্যে নোটিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা না নিলে আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে।

নোটিশে বলা হয়, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট ঢাকার বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে তখনকার বিরোধীদলীয় নেত্রী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। এতে দলের নেতা-কর্মীসহ ২২ জন নিহত হন।

এ ঘটনায় ২০০৫ সালের ৯ জুন নোয়াখালীর সেনবাগ থেকে ধরে আনা হয় জজ মিয়া নামের এক নিরীহ যুবককে। জজ মিয়াকে ১৭ দিন রিমান্ডে রেখে, ভয়ভীতি ও প্রলোভন দেখিয়ে তার কাছ থেকে একটি সাজানো জবানবন্দি আদায় করে সিআইডি। ২০০৫ সালের ২৬ জুন আদালতে দেয়া ওই কথিত স্বীকারোক্তিতে জজ মিয়া বলেছিলেন, ‘পাঁচ হাজার টাকার বিনিময়ে বড় ভাইদের নির্দেশে তিনি অন্যদের সঙ্গে গ্রেনেড হামলায় অংশ নেন। ওই বড় ভাইয়েরা হচ্ছেন শীর্ষ সন্ত্রাসী সুব্রত বাইন, জয়, মোল্লা মাসুদ ও মুকুল।’

পরে ২০০৭ সালে তত্ত্বাবধায়ক সরকার এসে নতুন করে এই মামলার তদন্তের উদ্যোগ নেয়। তদন্ত শেষে ২০০৮ সালের ১১ জুন এ-সংক্রান্ত মামলা দুটির অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। অব্যাহতি দেয়া হয় জোট সরকারের আমলে গ্রেপ্তার হওয়া জজ মিয়াকে। বিনা অপরাধে পাঁচ বছর কারাভোগ করতে হয়েছিল তাকে।

আরও পড়ুন:
‘কেয়ামত নেমে এসেছিল সেদিন’
তারেকসহ ৩ জনের অবস্থান জানা, ১২ জন কোথায়
‘মনে হয়েছিল আমার মৃত্যু হলেও শেখ হাসিনাকে বাঁচাতে হবে’
২১ আগস্টের আগে নেত্রীকে সাবধান করেছিলাম: খোকন
গৃহহীন সেই এমপি পাচ্ছেন আরও ভালো বাড়ি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
UP member arrested in rape case

ধর্ষণ মামলায় ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার

ধর্ষণ মামলায় ইউপি সদস্য গ্রেপ্তার
সাটুরিয়া থানার ওসি আশরাফুল আলম বলেন, ‘মামলার পরপরই দেলোয়ার হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।’

মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় গৃহবধূকে ধর্ষণের মামলায় দেলোয়ার হোসেন নামের এক ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উপজেলার বরাইদ ইউনিয়নের সাভার এলাকা থেকে বুধবার রাতে তাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

৩৫ বছর বয়সী দেলোয়ার হোসেনের বাড়ি একই এলাকায়। তিনি বরাই ইউনিয়ন পরিষদের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন সাটুরিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশরাফুল আলম।

এজাহারে বলা হয়, গত মঙ্গলবার রাতে ওই গৃহবধূকে ভিজিএফ (ভালনারেবল গ্রুপ ফিডিং) কার্ড দেয়ার কথা বলে ফোন করে তার বাড়িতে ডাকেন দেলোয়ার হোসেন। কিন্তু ওই নারী পরদিন সকালে যাওয়ার কথা বলে ফোনের লাইন কেটে দেন।

ওই রাতেই তিনি কার্ডের অজুহাতে গৃহবধূর বাড়ি এসে কেউ না থাকার সুযোগে তাকে ধর্ষণ করেন। এ সময় নারীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে দেলোয়ার হোসেনকে আটক করেন। পরে মীমাংসার কথা বলে স্থানীয় মাতব্বর তাকে ছাড়িয়ে নিয়ে আসেন।

এ ঘটনায় ওই নারী বুধবার রাতে সাটুরিয়া থানায় ইউপি সদস্যের নামে ধর্ষণ এবং নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

ওসি আশরাফুল আলম বলেন, ‘মামলার পরপরই দেলোয়ার হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
চা বাগানে ঘুরতে যাওয়া স্কুলছাত্রীকে ‘ধর্ষণ’, গ্রেপ্তার ২
মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় গ্রেপ্তার ২
চলন্ত বাসে ধর্ষণ: পাঁচ আসামির স্বীকারোক্তি
স্কুলছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে কারাগারে বৃদ্ধ
ডাকাতদের হাতে বাসযাত্রী ‘ধর্ষণ’, আলামত যাচ্ছে ঢাকায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
10 years in jail for stealing and selling government medicines

সরকারি ওষুধ বিক্রি করলে ১০ বছরের জেল

সরকারি ওষুধ বিক্রি করলে ১০ বছরের জেল প্রতীকী ছবি
মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ‘লাইসেন্স ছাড়া ঔষধ উৎপাদন, বিপণন বা আমদানি করলে ১০ বছরের জেল ও ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। একইভাবে সরকারি ঔষধ চুরি করে বিক্রি করলেও একই শাস্তি ভোগ করতে হবে।’

লাইসেন্স ছাড়া ওষুধ উৎপাদন-বিপণন এবং সরকারি ওষুধ চুরি করে বিক্রি করলে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদণ্ড ও ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রেখে ঔষধ আইন-২০২২-এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৃহস্পতিবার হয় মন্ত্রিসভার বৈঠক। এতে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন সরকারপ্রধান।

পরে সাংবাদিকদের বৈঠকের বিস্তারিত তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘লাইসেন্স ছাড়া ঔষধ উৎপাদন, বিপণন বা আমদানি করলে ১০ বছরের জেল ও ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। একইভাবে সরকারি ঔষধ চুরি করে বিক্রি করলেও একই শাস্তি ভোগ করতে হবে।’

বিস্তারিত আসছে…

আরও পড়ুন:
বাতিল ওষুধ এখনও বাজারে
মাত্রাতিরিক্ত গ্যাস্ট্রিকের ওষুধে ক্যানসারসহ নানা ঝুঁকি
অ্যান্টিবায়োটিকের অতি ব্যবহার বাড়াবে মৃত্যুর শঙ্কা: সিডিসি
ওষুধ দরকার ২০ টাকার, খরচ করতে হচ্ছে ২০০
আয়ুর্বেদিকের আড়ালে ভেজাল ওষুধের কারখানা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The emperors bail hearing has been delayed again

ফের পেছাল সম্রাটের জামিন শুনানি

ফের পেছাল সম্রাটের জামিন শুনানি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট। সংগৃহীত ছবি
সম্রাটের জামিন শুনানি ও মামলার চার্জ গঠন শুনানির জন্য দিন ঠিক ছিল বৃহস্পতিবার। সম্রাট অসুস্থ থাকায় কারা কর্তৃপক্ষ তাকে আদালতে না পাঠিয়ে কাস্টডি ওয়ারেন্ট (হাজতি পরোয়ানা) পাঠানো হয়। এরপর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান তার জামিন শুনানি ও চার্জ গঠন শুনানির জন্য ২২ আগস্ট দিন ঠিক করেন।

জ্ঞাত-আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাটের জামিন শুনানি পিছিয়েছে। আগামী ২২ আগস্ট ফের জামিন শুনানির দিন ঠিক করেছেন আদালত।

একই দিন মামলার অভিযোগ গঠন শুনানিরও দিন ঠিক করেছেন বিচারক।

সম্রাটের জামিন শুনানি ও মামলার চার্জ গঠন শুনানির জন্য দিন ঠিক ছিল বৃহস্পতিবার। সম্রাট অসুস্থ থাকায় কারা কর্তৃপক্ষ তাকে আদালতে না পাঠিয়ে কাস্টডি ওয়ারেন্ট (হাজতি পরোয়ানা) পাঠানো হয়। এরপর ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান তার জামিন শুনানি ও চার্জ গঠন শুনানির জন্য ২২ আগস্ট দিন ঠিক করেন।

মঙ্গলবার সম্রাটের জামিন বাতিল করে হাইকোর্টের আদেশ বহাল রেখেছিল আপিল বিভাগ। বিচারপতি মো. নূরুজ্জামানসহ তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

এ আদেশের ফলে তার জামিন বাতিল হয়েছিল।

এর আগে জ্ঞাত-আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগের মামলায় সম্রাটের জামিন বাতিল করে তাকে আত্মসমর্পণ করতে আদেশ দিয়েছিল আদালত। ২৪ মে সে আদেশেই আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেছিলেন তিনি।

গত ১১ মে সম্রাটকে জামিন দিয়েছিলেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৬-এর বিচারক আল আসাদ মো. আসিফুজ্জামান। পরে বিচারিক আদালতের দেয়া জামিন বাতিল চেয়ে ১৬ মে হাইকোর্টে আবেদন করে দুদক।

১৮ মে দুদকের এই মামলায় সম্রাটের জামিন বাতিল করে বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজি মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ। একই সঙ্গে সাত দিনের মধ্যে তাকে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয়া হয়।

দুদকের মামলায় জামিন পাওয়ার আগে তার বিরুদ্ধে থাকা আরও তিন মামলায় জামিন পান সম্রাট। চার মামলার সবটিতে জামিন পাওয়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) প্রিজন সেল থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন তিনি।

সারা দেশে ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান চলাকালে ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর সম্রাট ও তার সহযোগী তৎকালীন যুবলীগ নেতা এনামুল হক ওরফে আরমানকে কুমিল্লা থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

ওই বছরের ১২ নভেম্বর সম্রাটের বিরুদ্ধে দুদকের করা মামলায় ২ কোটি ৯৪ লাখ ৮০ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়। পরের বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের ২৬ নভেম্বর এ মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় দুদক।

অভিযোগপত্রে সম্রাটের বিরুদ্ধে ২২২ কোটি ৮৮ লাখ ৬২ হাজার ৪৯৩ টাকা জ্ঞাত-আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

আরও পড়ুন:
সম্রাট আবার কারাগারে
মানবিক বিবেচনায় জামিন চান সম্রাট
বাতিলই থাকছে সম্রাটের জামিন, ৩০ মে পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানি
সম্রাটের জামিন যেন ঘোড়ার আগে গাড়ি: হাইকোর্ট
সম্রাটের জামিন বাতিল, আত্মসমর্পণের নির্দেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Why the government did not seek information from the Swiss bank High Court

সুইস ব্যাংকের কাছে কেন তথ্য চায়নি সরকার: হাইকোর্ট

সুইস ব্যাংকের কাছে কেন তথ্য চায়নি সরকার: হাইকোর্ট সুপ্রিম কোর্ট ভবনের একাংশ। ফাইল ছবি
সুইস ব্যাংকে জমা করা অর্থের বেশির ভাগই অবৈধ পথে—এ ধরনের অভিযোগের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার কোনো পদক্ষেপ নিয়েছে কি না, তা রোববারের মধ্যে জানাতে বলেছে আদালত। হাইকোর্টের দুই বিচারকের একজন বলেন, ‘সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে পড়েছি।’

সুইস ব্যাংকে অর্থ জমাকারীদের তথ্য কেন জানতে চাওয়া হয়নি, তা সরকার ও দুদককে জানাতে বলেছে হাইকোর্ট।

বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি খিজির হায়াতের হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেয়।

সকালে বিচারকাজের শুরুতেই আদালত দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিকের বক্তব্য শোনে। পরে আদালত স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেয়।

সুইস ব্যাংকে জমা করা অর্থের বেশির ভাগই অবৈধ পথে—এ ধরনের অভিযোগের বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার কোনো পদক্ষেপ নিয়েছে কি না, তা রোববারের মধ্যে জানাতে বলেছে আদালত।

হাইকোর্টের দুই বিচারকের একজন বলেন, ‘সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে পড়েছি।’

ওই সময় তিনি বিষয়টি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পেতে প্রকাশিত সংবাদের কপি জমা দিতে বলেন।

ঢাকায় সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাতালি চুয়ার্ড বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকে বাংলাদেশের নাগরিকদের জমা করা অর্থের বেশির ভাগই অবৈধপথে আয় করার অভিযোগ রয়েছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার সুইস ব্যাংকের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য চায়নি।

আরও পড়ুন:
রেল ক্রসিং দুর্ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত চেয়ে রিট
অসদাচরণে পদ খোয়ালেন সহকারী অ্যাটর্নি মারুফা
হলফনামা দিয়ে বলুন, কত ফি নিয়েছেন: হাইকোর্ট
আনসার বিদ্রোহ: খালাসপ্রাপ্তদের সুযোগ-সুবিধা নিয়ে আপিল নিষ্পত্তি
শপথ নিলেন হাইকোর্টের ১১ অতিরিক্ত বিচারক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The youth who insulted the Prime Minister on Facebook Live was arrested

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে গালি দেয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার

ফেসবুকে প্রধানমন্ত্রীকে গালি দেয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার গ্রেপ্তার আবু তালেবকে আজ আদালতে তোলা হবে। ছবি: সংগৃহীত
গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘পুলিশ আবু তালেবের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা করেছে। বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে তোলা হবে।’

মেহেরপুরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের লাইভে এসে প্রধানমন্ত্রীকে গালি দেয়ার অভিযোগে ব্যাক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

উপজেলার সহোগলপুর গ্রাম থেকে বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার আবু তালেব গাংনী উপজেলার গাড়াবাড়িয়া গ্রামের বাজারপাড়ার বাসিন্দা।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ শেষে গাংনী থানায় তার নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা করা হয়েছে।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন জেলা গোয়েন্দা শাখার ওসি সাইফুল ইসলাম।

ওসি সাইফুল জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে দেশেও তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় গত ৬ আগস্ট আবু তালেব ফেসবুক লাইভে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গালিগালাজ করেন। পরে বিষয়টি আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর নজরে আসে।

এ ঘটনার পর থেকেই গা ঢাকা দেন আবু তালেব। পরে তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় পুলিশ অবস্থান জানতে পেরে তাকে গ্রেপ্তার করে।

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পুলিশ বাদী হয়ে আবু তালেবের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ও রাষ্ট্রদ্রোহী মামলা করেছে। আজ (বৃহস্পতিবার) তাকে আদালতে তোলা হবে।’

আরও পড়ুন:
পুলিশের ওপর হামলার মামলা: কারাগারে বিএনপি নেতা
টিপু-প্রীতি হত্যা: গ্রেপ্তার আরও ২ জন রিমান্ডে
ডিবির ভুয়া পরিচয়ে ডাকাতি, গ্রেপ্তার ৬
টিপু-প্রীতি হত্যা: গ্রেপ্তার আরও ৪ জন রিমান্ডে
যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The childs leg is cut by a knife for not getting dowry

‘যৌতুক না পেয়ে’ সন্তানের পায়ে খুন্তির ছ্যাঁকা

‘যৌতুক না পেয়ে’ সন্তানের পায়ে খুন্তির ছ্যাঁকা যৌতুক না পেয়ে সন্তানের পায়ে খুন্তির ছ্যাঁকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে যুবকের বিরুদ্ধে। ছবি: নিউজবাংলা
সাভার মডেল থানার ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত পলাতক রয়েছেন। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে। এ বিষয়ে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ঢাকার সাভারে যৌতুক চেয়ে না পেয়ে নির্যাতনের পর স্ত্রীকে তাড়িয়ে দুই সন্তানের পায়ে খুন্তির ছ্যাঁকা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে যুবকের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় ওই নারী তার স্বামীকে মাদকাসক্ত দাবি করে সাভার মডেল থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলাম বুধবার রাতে অভিযোগের বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন।

এর আগে বিকেলে পৌর এলাকার সবুজবাগ কোবা মসজিদের পাশের একটি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

আহত ৯ বছরের শিশু আরোবি ও তার ভাই ৫ বছর বয়সী আলিফ বর্তমানে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানা গেছে।

অভিযুক্ত নুর আলমের বাড়ি জয়পুরহাটের আক্কেলপুর থানার পূর্ব মাতাপুর গ্রামে।

লিখিত অভিযোগে বলা হয়, ১১ বছর আগে নুর আলম ও জয়মেনা খাতুনের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে এক মেয়ে ও ছেলের জন্ম হয়। মাদকাসক্ত নুর আলম কাজকর্ম না করে যৌতুকের জন্য দীর্ঘদিন ধরে স্ত্রীকে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে আসছিলেন।

গত ২৮ জুলাই যৌতুকের টাকার জন্য ছেলে ও মেয়েকে বাসায় আটকে রেখে জয়মেনা খাতুনকে বের করে দেন নুর আলম। জয়মেনা বাবার বাড়িতে আশ্রয় নেন।

পরে খেলতে যাওয়ায় মেয়ে আরোবি ও ছেলে আলিফকে মারধর করেন নুর আলম। এ সময় গরম খুন্তি চেপে ধরে মেয়ের ডান পায়ের তালু ও ছেলের বাঁ পায়ের তালু ঝলসে দেন। খবর পেয়ে জয়মেনা বেগম সন্তানদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

ওসি কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে অভিযুক্ত পলাতক রয়েছেন। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে। এ বিষয়ে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
যুবলীগ নেতার রাইফেলটি থানায় জমা
যুবলীগ নেতার ওপর ‘হামলা’, অস্ত্র হাতে অভিযুক্তের ছবি ভাইরাল 
টোল কম দেয়ায় নসিমনচালককে ‘মারধর’
১১৬ শতাংশ জমি দখলের চেষ্টায় মহিলা লীগ নেত্রী
যৌতুকের মামলা: সাক্ষ্য দেয়ায় ছেলেকে পেটাল বাবা-চাচা

মন্তব্য

p
উপরে