× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
The Padma Bridge is one of the most unique structures in Bangladesh
hear-news
player
print-icon

পদ্মা সেতু বাংলাদেশের অসাধারণ অনন্য এক স্থাপনা

পদ্মা-সেতু-বাংলাদেশের-অসাধারণ-অনন্য-এক-স্থাপনা
পদ্মা সেতুতে একটি অভিনব ও চমৎকার ব্যবস্থার প্রয়োগ আমরা দেখতে পাই। এতে কোনো নাট-বল্টু ও রেবেটিং নেই, সম্পূর্ণটা ওয়েল্ডেড বা ঝালাই করা এবং এতে কেমিক্যালের কঠিন একটা স্তর দেয়া হয়েছে, যে কারণে জং বা মরিচা ধরার কোনো সুযোগ নেই, আর ওজনটাও বেশ হালকা-পাতলা।

পদ্মা সেতু শুধু একটি যোগাযোগের বড় মাধ্যম নয়, এটা এক আবেগ ও ভালোবাসারও নাম। এটা টেকনিক্যালই চ্যালেঞ্জিং ছিল বাংলাদেশের জন্য। অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জও বটে।

এ এলাকার ভৌগোলিক অবস্থাও একটা চ্যালেঞ্জিং বিষয়। এর সঙ্গে জড়িয়ে গেছে দেশে রূপান্তরকামী একটা চেতনা। বলতে পারি, পদ্মা সেতু দেশ রূপান্তরকারী একটি প্রকল্প, এটা এখন সক্ষমতার প্রতীক।

আমাদের একটা প্রবণতা ছিল- কোনো উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য দাতাদের দিকে তাকিয়ে থাকা। এ প্রকল্পে কিন্তু সেটা থেকে বেরিয়ে আসতে পেরেছি বলে মনে হয়। প্রযুক্তিগতভাবে আমরা কতটা এগিয়েছি সেটার পরিচয়ও সেতুটি বহন করে।

এর নির্মাণকৌশল ও প্রযুক্তিগত দিক দেখতে গেলে বিজ্ঞানের আশীর্বাদই সামনে ভেসে ওঠে। আমরা যদি দেশের উল্লেখযোগ্য একটি স্থাপনা হার্ডিঞ্জ ব্রিজের দিকে তাকাই, তবে দেখতে পাব সেখানে ট্র্যাডিশনাল প্রযুক্তির প্রয়োগ ঘটেছে। লোহা, নাট-বল্টু ব্যবহৃত হয়েছে। ওই সেতুটার রক্ষণাবেক্ষণের জন্য সময়-অর্থ ও জনবলের প্রয়োজন হয়। নাট-বল্টু ও রেবেটিং থাকলে সেগুলো ঘন ঘন পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়ে। সেতু যত পুরোনো হতে থাকে এর রক্ষণাবেক্ষণ ও ব্যবস্থাপনা খরচও তত বাড়তে থাকে।

পদ্মা সেতুতে এ সবের দরকার হচ্ছে না, একটি অভিনব ও চমৎকার ব্যবস্থার প্রয়োগ আমরা দেখতে পাই। এতে কোনো নাট-বল্টু ও রেবেটিং নেই, সম্পূর্ণটা ওয়েল্ডেড বা ঝালাই করা এবং এতে কেমিক্যালের কঠিন একটা স্তর দেয়া হয়েছে, যে কারণে জং বা মরিচা ধরার কোনো সুযোগ নেই, আর ওজনটাও বেশ হালকা-পাতলা।

সাধারণত আমাদের ব্রিজগুলোয় কংক্রিট ব্যবহৃত হয়। যেসব ব্রিজে লোহার রড থাকে সেগুলোর স্থায়িত্ব নিয়ে একটি প্রশ্ন থেকেই যায়; তবে এ দ্বিতল সেতুতে দুটিরই ব্যবহার আছে। এমনভাবে এটি নির্মিত যে ভূমিকম্পেও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। আমরা এটাকে একটা কম্পোজিট ব্রিজও বলতে পারি। অবকাঠামোগতভাবে এটা বাংলাদেশের জন্য এক অসাধারণ অনন্য স্থাপনা।

যেসব স্থাপনায় রড ব্যবহৃত হয় সেখানে পানি পেলে রড ফুলে যায় এবং ক্ষয় হতে থাকে, সঙ্গে থাকা অন্য উপাদানেরও ক্ষতি করে থাকে। সে জন্য সেগুলোর স্থায়িত্বের ক্ষেত্রে মোটামুটি ১০০ বছর ধরা হয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশ যারা পদ্মা সেতুতে প্রয়োগ করা প্রযুক্তি ব্যবহার করেছে সেখান থেকে জানা জানা যায়, এর স্থায়িত্ব ১০০ বছরের বেশি।

আমরা বলতে পারি পদ্মা সেতু বাংলাদেশের একটি দীর্ঘস্থায়ী স্থাপনা। এছাড়া স্টিল ট্রাসের সেতু হওয়ায় এটি পুনর্ব্যবহার যোগ্য (Recyclable)। কংক্রিট ব্রিজ পুনর্ব্যবহার করা যায় না বরং ডেমোলিশন একটি বড় চ্যালেঞ্জ ও পরিবেশ দূষণকারী ব্যাপার। সে বিবেচনায় পদ্মা সেতু একটি পরিবেশবান্ধব সবুজ উন্নয়ন।

রক্ষণাবেক্ষণের ক্ষেত্রে আমরা সেতু বা স্থাপনার ক্ষতি সাধনের পরে সেটা দেখতে বা জানতে পারি। তবে এটার ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম। ক্ষতি বা সমস্যা হওয়ার আগেই সেটা জানা সম্ভব।

সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে এ ব্রিজের মধ্যে যে উন্নত ইলোকট্রনিক প্রযুক্তির মনিটরিং সেল ও সেল্ফ সেন্সর রয়েছে সেটি জানান দেবে এ স্থাপনাটির স্বাস্থ্যগত কোনো পরিবর্তন ঘটছে কি না। কোন জায়গায় কতটুকু চাপে আছে? ভূমিকম্প বা অন্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ কোনো নেতিবাচক পরিবর্তন ঘটাচ্ছে কি না তা জানান দেবে। সংগত কারণেই এটার নির্মাণকৌশল ও প্রযুক্তিগত কারণে একে টেকসই করার ক্ষেত্রে বিরাট ভূমিকা রাখেবে। সব মিলিয়ে বলতে পারি এবং আমার বিশ্বাস, যে প্রযুক্তি ও কৌশল পদ্মা সেতুতে প্রয়োগ করা হলো- তাতে এর স্থায়িত্ব ১০০ বছরের বেশি হবে।

ভবিষ্যতে প্রমত্ত পদ্মার গতিপথে যদি পরিবর্তন ঘটে বা সেতুর নিচে মাটির স্তরের হেরফের হয় তাতেও সমস্যা নেই। মনে রাখা দরকার, অতীত বলে নদী কখনও শাসন মানে না। যতই আমরা চেষ্টা করি ব্রিজের নিচ দিয়ে পানিপ্রবাহ ও গতি ঠিক রাখতে, তা সম্ভব নয়।

নদী নতুন গতিপথ সৃষ্টি করে, এটা এর স্বভাব; নতুন চরও তৈরি করে। নদীভাঙনের লক্ষণ দেখা দিলে আগেই বিষয়টি পর্যবেক্ষণে রাখতে হবে। আমাদের যমুনা সেতুতে যেসব গাইড দেখছি সেসব কিন্তু অনেক সময় টিকছে না।

অপরদিকে নদীর পলি মাটি বেশ ভঙ্গুর। নদীর গতি-প্রকৃতি সহজে বোঝা যায় না। যতটুকু বোঝা যায় ততটুকু হয়তো শাসন করা গেল, কিন্তু তার চরিত্র বদলাবে না। নদীশাসনের পরপরই প্রয়োজন হবে নিবিড় নজরদারি। সেতুর নিচ দিয়ে পানিপ্রবাহের ব্যবস্থা হয়তো করা গেল। অনেকগুলো পিলারে পানি বাধা পাবে এটাই স্বাভাবিক। এতে কী হবে? নদীর তলদেশের মাটি ক্ষয় হবে ক্ষরস্রোতের কারণে। যে চাপটা আসবে তাতে নদী রাগান্বিত হবে এর বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী শাসন মানবে না, ইতিহাস এটাই বলে। প্লাবনভূমির নদীগুলোর শাসনব্যবস্থা ও প্রকৌশলগত দিকে আমরা এখনও পরিপক্ব হতে পারিনি।

পদ্মা সেতুর বিষয়ে এমন আশঙ্কা নেই। সেতু যেহেতু ভূমিকম্পরোধক ও পিলারগুলো নদীক্ষয়ের স্তর থেকে অনেক গভীরে প্রোথিত সেহেতু আমরা আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিতে পারি।

আরেকটি ইতিবাচক প্রসঙ্গ এখানে তুলে ধরতেই হয়। পদ্মা সেতুর ফলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অবকাঠামোগত অভূত পরিবর্তন দেখা দেবে। সেটা হবে একটু দ্রুতগতিতে। বঙ্গবন্ধু সেতু হওয়ার পরে সিরাজগঞ্জ তথা উত্তরাঞ্চলের পরিবর্তন ঘটেছে বটে, তবে একটু ধীর গতিতে। আর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ঢাকার কাছে হওয়ায় এর পরিবর্তন হবে দ্রুত।

এক সময় খুলনা কিন্তু শিল্পাঞ্চল ছিল। সেখানে একটা সমুদ্রবন্দরও আছে, মংলা। কিছু অবকাঠামোগত ঘাটতি ও সমস্যার কারণে ওই এলাকাটি একটু পিছিয়ে যায়। যেমন, সরাসরি যোগাযোগের অভাব আর ফেরির যে বাধা; তা পরিবহন বা যোগাযোগবান্ধব নয়। যে কারণে বিনিয়োগটা ওই এলাকায় যায়নি। এর ওপর বড় বেশকিছু জনবল ঢাকায় কর্মসংস্থানের জন্য আসায় রাজধানীর ওপর চাপ বেড়ে যায়।

পদ্মা সেতুর কারণে চমৎকার যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য ওই অঞ্চলের বিনিয়োগকারীরা প্রয়োজনীয় শিল্প, কলকারখানা তৈরিতে উদ্বুদ্ধ হবেন। ফিনিশিং প্রডাক্ট রপ্তানি বা বাজারজাতকরণে ওই মংলা পোর্টও বড় ভূমিকা রাখেবে। ওই অঞ্চলে বিপুলসংখ্যক জনবলের কারণেও শিল্প-কারখানাগুলোর দ্রুত প্রসার ঘটবে বলে আশা করা যায়।

এসব কারণে আমি বলব একটা অর্থনৈতিক উদ্দীপনা তৈরি হবে। ওই অঞ্চলে সামাজিক, অর্থনৈতিক- সর্বোপরি মানুষের পারস্পরিক যোগাযোগে পরিবর্তন ও সম্পূরক অবকাঠামোগত পরিবর্তন হবে। দেশে এখন অনেক বড় উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারী আছেন, যারা এই বিনিয়োগের সুন্দর পরিবেশ ও সম্ভবনা দেখে সেখানে বিনিয়োগ বাড়াবেন।

আমাদের বড় মাপের অর্থনীতির জন্যে দরকার বড় করপোরেট। দেশি-বিদেশির পাশাপাশি ছোট ব্যক্তি উদ্যোক্তাকেও বিনিয়োগের পরিসর পরিকল্পিত ও সমন্বিতভাবে রূপরেখা করে দিতে হবে। তা না হলে বিশৃঙ্খলভাবে ছোটখাট কলকারখানা, সাধারণ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা আবাসন প্রকল্প গড়ে উঠবে। সেগুলো অবশ্যই উন্নয়ন, তবে এলোমেলো। প্রয়োজন পরিকল্পিত উন্নয়ন।

উন্নয়ন হবে তবে এটাকে গাইড করে মাত্রা ঠিক করে দিতে হবে। নইলে এলোমেলো উন্নয়ন পরবর্তী সময়ে একটা সমস্যা সৃষ্টি করবে। হয়তো এর পুরোপুরি সুফল আমরা পাব না, এজন্য সরকারের মনিটরিং বাড়ানোর আগে একটা রূপরেখা বা মাস্টার প্ল্যান করলে এর রিটার্ন আমরা পেতে পারি।

আরেকটি বিষয় আমাদের মাথায় রেখে এগোতে হবে। পদ্মা সেতুর করিডরের দুইপ্রান্তের প্রবেশদ্বারে জনজট ও যানজটমুক্ত রাখার বিষয়ে সর্বোচ্চ পদক্ষেপ রাখা জরুরি। দুই পাড়ের মানুষই দীর্ঘদিন দীর্ঘ সময় ও পথ পাড়ি দিতে অভ্যস্থ ছিল। এখন দুই ঘণ্টার পথ পাড়ি দেবে ১৫ মিনিটে। মানুষ শুধু সেতু পার হবে না, তারা যাবে নিজেদের গন্তব্যে। সেটা ঢাকার দিকে বা দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলই শুধু নয়, বিভিন্ন এলাকায় হবে। সময় হয়তো বাঁচবে, তবে যেখানে গিয়ে যানবাহন নামবে সেখানে যানজট হবে এটা স্বাভাবিক।

একটি বিশ্বমানের ব্রড ব্যান্ড সার্ভিস চালু হলো। এতদিন ছিল লোকাল সার্ভিসের চেয়েও খারাপ একটি ফেরি সার্ভিস। এ অবস্থায় ব্রিজের উপযোগিতা বাড়বে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

ভাবনার বিষয় হলো, ঢাকার প্রবেশদ্বার কিন্তু প্রস্তুত নয়। যানজটটা রাজধানীর মধ্যে থেমে থেমে বা বিচ্ছিন্নভাবে হয় বা হচ্ছে, পদ্মা সেতু পারাপারের পর সেসব বাহন পড়বে দীর্ঘ যানজটে। সেসব যে প্রবেশ পথ দিয়েই ঢুকুক সেটা বছিলা বলি, দ্বিতীয় বুড়িগঙ্গা সেতুই বলি আর মেয়র হানিফ ফ্লাইওভার হোক; সেসব জায়গায় যানজটের হট-স্পট হবে।

পদ্মা সেতু নতুন বাস ট্রানজিট তৈরি করবে। ঢাকার অভ্যন্তরীণ রাস্তা ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের রাস্তাগুলো বেশ সরু। ঢাকায় যারা ঢুকবে, তারা যানজটের বিড়ম্বনায় পড়বে। রাজধানীর বাইরে থেকে যেকোনো যানবাহন যখন প্রবেশ করবে তখন একটা চাপ থাকবে এটাই স্বাভাবিক। ঢাকার নেটওয়ার্কও কিন্তু প্রস্তুত নয়। যারা ঢাকা থেকে বের হয়ে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে যাবে তারা তুলনামূলকভাবে একটু লাভবান হবে, যানজটে না পড়ায় সময় সাশ্রয় হবে। তবে রাজধানী বা এটা দিয়ে অতিক্রম করে গন্তব্যে পৌঁছানোর রাস্তাগুলো বেশ সংকীর্ণ হাওয়ায় তারা যানজটে পড়বে।

ঢাকার মধ্যে যে যানজট বাড়বে এটা মাথায় রেখে উন্নয়ন পরিকল্পনার দরকার ছিল, যেটা এখনও হয়নি। যানজট কমাতে অতিরিক্ত গাড়ি প্রবাহের চাপ বিলি-বণ্টন করতে অবশ্যই রিং-রোড বা বৃত্তাকার এক্সপ্রেসওয়ে তৈরি করতে হবে। ব্যবহারকারীরা সম্পূরক রাস্তা না পেলে এর সুফল পুরোপুরি পাবে না। তখন একটা প্রশ্ন সামনে আসতে পারে- এটা সমন্বিত উন্নয়ন হলো কি না!

আমার পরামর্শ হলো, করিডরের সড়কপথে আমরা ব্যাপক বিনিয়োগ করেছি। ট্রান্সপোর্ট করিডর হলো অর্থনৈতিক উন্নয়নের অন্যতম প্রধান মেরুদণ্ড, এই ট্রান্সপোর্ট করিডরের মহাসড়কের পাশে ইন্ডাস্ট্রিয়াল এরিয়া তৈরি করলে বড় সুবিধা হবে- পণ্য কোনো যানজট ছাড়াই বহন করে গন্তব্যে পৌঁছানো যাবে। অর্থাৎ সড়কের দুপাশে আধা বা এক কিলোমিটার জমি অধিগ্রহণ করে অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলতে পারি। এতে কাঁচামাল ও তৈরি পণ্য সহজেই গন্তব্যে পৌঁছানো যাবে।

আমরা বাইরের কোনো সহায়তা ছাড়াই বিশ্ব অর্থনীতি বা বিশ্ববাজারের সঙ্গে নিজেদের আরও সংযুক্তি বাড়াতে পারব তখন, যখন সময় ও খরচ কমাতে ট্রান্সপোর্ট করিডরকে রূপান্তর করে অর্থনৈতিক করিডরে আনতে পারব। এতে এলডিসি গ্র্যাজুয়েশনে উন্নীত হতে পারব দ্রুত। এ ব্যাপারে সরকার যদি চুপ করে থাকে সেক্ষেত্রে উন্নয়ন হবে এলোমেলো।

আমরা দেখেছি ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে যেসব আবাসন ও স্থাপনা গড়ে উঠেছে সেসবে শৃঙ্খলা নেই। আমরা প্রত্যাশা করছি অদূর ভবিষ্যতে ট্রান্সপোর্ট করিডরকে ইকোনমিক করিডরে রূপান্তর করা হবে, এতে সরকারও আত্মপ্রসাদের আনন্দ পাবে। এমনটা ইতোমধ্যে ভিয়েতনাম করছে ও থাইল্যান্ড করে ফেলেছে।

লেখক: পরিবহন বিশেষজ্ঞ। অধ্যাপক, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন:
পদ্মায় ফেরি আটকে আর ঝরবে না তিতাসের মতো প্রাণ
পদ্মা সেতু আত্মমর্যাদার প্রতীক: রওশন
পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার দৃঢ় সংকল্পের প্রমাণ: পাকিস্তান
পদ্মায় ফেরি বন্ধ
নৌকা নিয়ে পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে চান মিনারুল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Sundarbans flooded by tides

জোয়ারে প্লাবিত সুন্দরবন

জোয়ারে প্লাবিত সুন্দরবন
সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজাদ কবির বলেন, ‘গেল দুইদিন ধরে জোয়ারের পানি বাড়তে শুরু করেছে। আজকে দুপুরে পানি আরও বেশি বেড়েছে। করমজলসহ সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।’

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট নিম্নচাপের প্রভাবে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২ থেকে ৩ ফুট পানি বেড়েছে সুন্দরবন সংলগ্ন বিভিন্ন নদী ও খালে।

এ কারণে দিনে দুইবার প্লাবিত হচ্ছে সুন্দরবনের বেশিরভাগ জায়গা।

জোয়ারে বৃহস্পতিবার দুপুরে তলিয়েছে করমজলসহ বেশ কিছু এলাকা। তবে এতে কোনো প্রাণির ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে জানিয়েছে বন বিভাগ।

সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের চাঁদপাই রেঞ্জের করমজল বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজাদ কবির এসব জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘গেল দুইদিন ধরে জোয়ারের পানি বাড়তে শুরু করেছে। আজকে দুপুরে পানি আরও বেশি বেড়েছে। করমজলসহ সুন্দরবনের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

‘বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে জোয়ারের পানি এভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।’

মোংলা আবহাওয়া অফিসের ইনচার্জ অমরেশ চন্দ্র ঢালী বলেন, ‘বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপটি ভারতের মধ্য প্রদেশে অবস্থান করছে। ক্রমশ এটি দূর্বল হয়ে যাচ্ছে। তারপরও লঘুচাপের প্রভাবে সুন্দরবন, মোংলা সমুদ্র বন্দরসহ বঙ্গোপসাগর উপকূল জুড়ে ঝড়ো বাতাস ও বৃষ্টিপাত হচ্ছে।

‘এছাড়া জোয়ারের পানিও স্বাভাবিকের থেকে ২ থেকে ৪ ফুট বেড়েছে। গেল ২৪ ঘণ্টায় মোংলায় ১৮ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। শুক্রবারও বৃষ্টি থাকবে। শনিবার নাগাদ কমতে পারে।’

আরও পড়ুন:
ভারি বৃষ্টি, জোয়ারে ফসলহানির শঙ্কা, পানিবন্দি হাজারও পরিবার
সেপ্টেম্বরে আসছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’
‘অপারেশন সুন্দরবন’-এর ট্রেইলার প্রকাশ হবে সমুদ্রসৈকতে
জোয়ারে তলিয়েছে বাগেরহাটের ২৫ গ্রাম
পাঁচ বছরে সুন্দরবন উপকূলে জমির দাম বেড়েছে তিন গুণ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Montu Ambia Dialogue Consensus on Anti Government Movement

মন্টু-আম্বিয়া সংলাপ, সরকারবিরোধী আন্দোলনে ঐকমত্য

মন্টু-আম্বিয়া সংলাপ, সরকারবিরোধী আন্দোলনে ঐকমত্য
সংলাপ শেষে দুই দলের নেতারা বলেন, ‘সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার ফিরিয়ে এনে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বিনির্মাণে লড়াই অব্যাহত রাখবে গণফোরাম ও বাংলাদেশ জাসদ। অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের লক্ষ্যে এই কর্তৃত্ববাদী সরকারকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করা হবে।’

তিন মাস আগেও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের শরিক নেতা ছিলেন বাংলাদেশ জাসদ সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়া। তবে জোট ছেড়ে দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য দাবি তুলেছেন তিনি।

সরকারবিরোধী এই অবস্থান নিয়ে বৃহস্পতিবার ড. কামাল হোসেন প্রতিষ্ঠিত দল গণফোরামের সঙ্গে (মন্টু) সংলাপ করেছে বাংলাদেশ জাসদ।

গণফোরাম সভাপতি মোস্তফা মোহসীন মন্টু ও বাংলাদেশ জাসদ সভাপতি শরিফ নুরুল আম্বিয়ার নেতৃত্বে এই সংলাপ শেষে সরকারকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলার কথা জানিয়েছেন দুই দলের নেতারা।

বৃহস্পতিবার বিকালে আরামবাগে গণফোরাম কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ওই সংলাপে চলমান রাজনৈতিক সংকটে করণীয় নিয়ে আলোচনা হয়।

সংলাপে দুই দলের নেতারা বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের অঙ্গীকার সাম্য, মানবিক মর্যাদা ও সামাজিক সুবিচার ফিরিয়ে এনে অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র বিনির্মাণে লড়াই অব্যাহত রাখবে গণফোরাম ও বাংলাদেশ জাসদ। দেশের চলমান সংকট উত্তরণে আগামী নির্বাচনে জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা বাস্তবায়নে অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের লক্ষ্যে এই কর্তৃত্ববাদী সরকারকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করা হবে।’

মোস্তফা মোহসীন মন্টু বলেন, ‘২০১৮ সালের নির্বাচন ও পূর্ববর্তী দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন প্রমাণ করে যে বাংলাদেশে দলীয় সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না। সুতরাং সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন চাই।

‘অবিলম্বে সব রাজনৈতিক দল বসে সংকট সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। এ ব্যাপারে আমরা ঐকমত্যে পৌঁছতে না পারলে দেশে মহা সংকট অনিবার্য। তাহলে জনগণ আমাদের ক্ষমা করবে না এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে আমরা দায়ী থাকব। তাই দেশের এই ক্রান্তিকালে সবাইকে একমত হয়ে জনগণের ভোটাধিকার আদায় করে জনতার সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।’

শরিফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, ‘দুঃশাসনের এই সরকার সঠিকভাবে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে পারছে না। তারা অপকর্মের দায় এড়াতে জনগণের ওপর দুঃখ-দুর্দশা চাপিয়ে দিচ্ছে।

‘এই সরকার কোনোকিছুই নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির ফলে সবকিছুর দাম বাড়ছে। সরকারের উচিত এই মুহূর্তে পদত্যাগ করা। আমাদের লক্ষ্য সব সংকট কাটিয়ে উঠতে সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিধিত্বমূলক সরকার প্রতিষ্ঠা করা।’

সংলাপে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাসদের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করিম সিকদার ও মনজুর আহমেদ মনজু এবং গণফোরাম সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরীসহ অন্যান্য কেন্দ্রীয় নেতা।

আরও পড়ুন:
‘সরকার উন্নয়নের কল্পকাহিনি শোনাচ্ছে’
গণফোরামের ইফতারে ফখরুলের সঙ্গে ১৪ দলের শরিক
গণফোরামের একাংশের কাউন্সিলে হামলা, আহত ২০
নতুন জোটের চেষ্টায় বিএনপির তিন ‘বন্ধু’, আছে ১৪ দলের শরিকও
অগ্নিঝরা মার্চে বাজারে আগুন: গণফোরাম

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Head teacher in jail in molestation case

শ্লীলতাহানির মামলায় প্রধান শিক্ষক কারাগারে

শ্লীলতাহানির মামলায় প্রধান শিক্ষক কারাগারে
শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে প্রাইভেট পড়ানোর সময় দীপ্তিস্বর ছাত্রীদের সঙ্গে অসৌজন্য আচরণ করতেন। সবশেষ তিনি এক ছাত্রীকে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেন।

খুলনার রূপসায় ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে করা মামলায় গ্রেপ্তার ডোবা বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দীপ্তিস্বর বিশ্বাসকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে তাকে স্কুল থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

তাকে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। এসব নিশ্চিত করেছেন রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরদার মোশাররফ হোসেন।

প্রধান শিক্ষক দীপ্তিস্বরকে বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বিদ্যালয়ে অবরুদ্ধ করে আন্দোলন করেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা।

তাদের অভিযোগ, দীর্ঘদিন ধরে প্রাইভেট পড়ানোর সময় দীপ্তিস্বর ছাত্রীদের সঙ্গে অসৌজন্য আচরণ করতেন। সবশেষ তিনি এক ছাত্রীকে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেন।

বিষয়টি জানাজানি হলে বুধবার সবাই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে বিদ্যালয়ে। বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা অফিস কক্ষে ঢুকে বিদ্যালয়ের চেয়ার, টেবিল, ব্যবহারিক জিনিসপত্র ভাঙচুর করে। তারা প্রধান শিক্ষককে মারধরেরও চেষ্টা করে। পরে পুলিশ গিয়ে তাকে থানায় নিয়ে যায়।

ওসি মোশাররফ বলেন, ‘ওই শিক্ষককে থানায় আনার পর তার বিরুদ্ধে এক ছাত্রীর বাবা বুধবার রাতেই মামলা করেন। তাকে ওই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়।’

এজাহারে বলা হয়েছে, গত ৯ আগস্ট স্কুল শেষে প্রাইভেট পড়ানোর সময় নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌনতার প্রস্তাব দেন দীপ্তিস্বর। তাতে রাজি না হওয়ায় ছুটির পর মেয়েটিকে তিনি শ্লীলতাহানির চেষ্টা করেন। ওই ছাত্রীর চিৎকারে অন্য শিক্ষার্থীরা এগিয়ে গেলে শিক্ষক সেখান থেকে চলে যান।

বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. কামাল উদ্দীন বাদশা বলেন, ‘প্রাথমিক ভাবে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রুবাইয়া তাছনিম বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে আমার কাছে একটি লিখিত অভিযোগ এসেছিল। আমি সেটা থানায় ফরওয়ার্ড করেছি। ওই প্রধান শিক্ষকের কার্যকলাপ তদন্তের জন্য উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে বলা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ফুলের মালা পরিয়ে কলেজে ফেরানো হলো অধ্যক্ষ স্বপনকে
অধ্যক্ষ স্বপন কলেজে যাচ্ছেন বুধবার
ক্লাসরুমে বাঁশে বাঁধা ফ্যান ছিঁড়ে চোখ গেল শিক্ষকের
আ. লীগ নেতার বিরুদ্ধে শিক্ষকদের অপমানের অভিযোগ
বগুড়ায় অধ্যক্ষকে মারধরের নেপথ্যে কী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The circle behind Bangabandhus assassination must be identified Chief Justice

বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনের চক্রকে চিহ্নিত করতে হবে: প্রধান বিচারপতি

বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনের চক্রকে চিহ্নিত করতে হবে: প্রধান বিচারপতি বইয়ের মোড়ক উম্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী। ছবি: নিউজবাংলা
প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ঘটনায় মনে হয়নি বাঙালিরা মানুষ হয়েছে। তার কারণ বঙ্গবন্ধুকে যারা গুলি করে হত্যা করেছে তারাও বাঙালি ছিল। এখন প্রশ্ন হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে যারা সামনে থেকে গুলি করেছে, যারা স্বীকার করেছে হত্যার কথা, শুধুমাত্র তারাই কি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে? এর পেছনে অনেক বড় চক্র ছিল। এখন প্রয়োজন এর পেছনে কারা ছিল সেটি বের করা।’

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যায় ‘পেছনে কারা কলকাঠি নেড়েছে’ তা চিহ্নিত করা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্টের অডিটোরিয়ামে হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি এ এন এম বসির উল্লাহ রচিত এক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ঘটনায় মনে হয়নি বাঙালিরা মানুষ হয়েছে। তার কারণ বঙ্গবন্ধুকে যারা গুলি করে হত্যা করেছে তারাও বাঙালি ছিল। এখন প্রশ্ন হচ্ছে বঙ্গবন্ধুকে যারা সামনে থেকে গুলি করেছে, যারা স্বীকার করেছে হত্যার কথা, শুধুমাত্র তারাই কি বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে? এর পেছনে অনেক বড় চক্র ছিল। এখন প্রয়োজন এর পেছনে কারা ছিল সেটি বের করা।’

এসময় তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনে যারা ছিল তাদের শনাক্ত করতে কমিশন গঠনের কথা উল্লেখ করে আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান ও বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের বক্তব্যকে সমর্থন করেন।

বিচার ব্যবস্থার গতি নিয়ে হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, ‘গত ছয় মাসে অধস্তন আদালতে মামলা নিষ্পত্তির সংখ্যা বেড়েছে। এটা অধস্তন আদালতের বিচারকদের প্রচণ্ড পরিশ্রমের ফল। বিচার কাজে গতি বেড়েছে, দূর্গতি কমেছে মানুষের। আসুন আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করি, যাতে মানুষকে আদালতের বারান্দা থেকে দ্রুত বাড়ির বারান্দায় ফেরত পাঠাতে পারি।

‘আমার কাছে রোজ ৪০ থেকে ৫০টা চিঠি আসে। প্রত্যেকটা চিঠি আমি খুলে পড়ি। বিচার বিভাগের প্রধান হিসেবে আমার দায়িত্ব হচ্ছে বিচার প্রার্থীদের কষ্ট, দুঃখ দূর করা।’

বিশেষ অতিথি আপিল বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বঙ্গবন্ধু হত্যার পেছনের কুশীলবদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠনের বিষয়ে মত দেন।

অনুষ্ঠানে আপিল বিভাগের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন আপিল বিভাগের বিচারপতি মো. নূরুজ্জামান, বিচারপতি বোরহান উদ্দিন, প্রফেসর ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন সহ অন্যরা।

'বিচারক জীবনের কথা মুনসেফ থেকে জেলা জজ’ নামে বইটি রচনা করেছেন বিচারপতি এ এন এম বসির উল্লাহ।

আরও পড়ুন:
বিচারপ্রার্থীরা আস্থা হারালে বিচার ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে: প্রধান বিচারপতি
বিচার বিভাগ শক্ত থাকলে শক্তিশালী হয় গণতন্ত্র: প্রধান বিচারপতি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
This time the face of the BNP leader will be played

এবার বিএনপি নেতার মুখে ‘খেলা হবে’

এবার বিএনপি নেতার মুখে ‘খেলা হবে’
নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের বক্তব্যের ‘খেলা হবে’ স্লোগানটি সে সময় বেশ জনপ্রিয়তা পায়। দেশের সীমানা পেরিয়ে স্লোগানটি উঠে যায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে। এবার তা উচ্চারণ করলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম।

রাজনীতিতে ইতোমধ্যে জনপ্রিয় হওয়া স্লোগান ‘খেলা হবে’ এবার শোনা গেল বিএনপি নেতার মুখে। নয়াপল্টনে বৃহস্পতিবারের সমাবেশে এই স্লোগান দিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগকে হুশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুস সালাম।

নারায়ণগঞ্জের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য শামীম ওসমানের বক্তব্যের ‘খেলা হবে’ স্লোগানটি সে সময় বেশ জনপ্রিয়তা পায়। দেশের সীমানা পেরিয়ে স্লোগানটি উঠে যায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখে। গত বিধানসভা নির্বাচনে মমতার মুখে ‘খেলা হবে’ স্লোগানটি বার বার শোনা গেছে।

জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধি, বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং ও পণ্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপি ওই সমাবেশের আয়োজন করে। বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন আব্দুস সালাম।

সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানান বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মহানগর উত্তর-দক্ষিণ আওয়ামী লীগ এবং সহযোগী সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের সঙ্গে জরুরি সভায় ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা রাজপথ থেকে ক্ষমতায় এসেছি। বিএনপি যেভাবে হুমকি-ধমকি দিচ্ছে তাতে মনে হচ্ছে আমরা মাঠে নেই। অচিরেই রাজপথে দেখতে পাবেন। খেলা হবে, রাজপথে মোকাবেলা হবে।’

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদকের ওই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় বিএনপি নেতা আব্দুস সালাম বলেন, ‘এবার খেলা হবে। মুজিব কোট পরে আর কেউ রাস্তায় নামতে পারবে না।’

তিনি বলেন, ‘যুদ্ধে রাজি আছি আমরা। আমরা ভেসে আসিনি। যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছি। সামনে-পেছনে র‌্যাব-পুলিশ বাদ দিন। হাসিনা গণভবন থেকে বের হয়ে সুধা সদনে যান। আমাদের মতো পাবলিক হয়ে যান। তারপর হবে যুদ্ধ।

‘আওয়ামী লীগের এক নেতা আছেন না? বলেছেন, তিনি পুরনো খেলোয়াড়। আমরাও কিন্তু কম পাকা খেলোয়াড় না। খেলার দেখছেন কী? কড়ায়-গণ্ডায় হিসাব দিয়ে যেতে হবে। আমরা কিছুই ভুলিনি। ধৈর্য্য ধরে আছি।’

আরও পড়ুন:
বিএনপির সমাবেশে মারামারি, নিপুণের ওপর চড়াও
ছাত্রদল নেতা হত্যায় ৪৬ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা
হরতাল-অবরোধ না দেয়ার ইঙ্গিত বিএনপি নেতার
পুলিশ বন্ধু, ভোলার প্রাণহানি দুর্ঘটনা: বিএনপি নেতা
আগাম জামিন পেলেন বিএনপির ৬০ নেতাকর্মী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The employee complained of harassment against the principal

অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ কর্মচারীর

অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে হয়রানির অভিযোগ কর্মচারীর
অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, অনেক দিন ধরেই অধ্যক্ষ ওই নারীকে যৌনতার প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। স্বামীকে ছেড়ে তার কাছে যেতে বলেছিলেন। রাজি না হওয়ায় তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হচ্ছিল।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে সরকারি গণ-মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে নারী কর্মচারীকে হয়রানির অভিযোগ উঠেছে।

অধ্যক্ষ মো. কামরুজ্জামানের বিরুদ্ধে দেয়া লিখিত অভিযোগ তদন্ত করছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

ইউএনও মো. সিফাত উদ্দিন বৃহস্পতিবার নিউজবাংলাকে ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন।

ওই নারী প্রতিষ্ঠানটির চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী।

অভিযোগপত্রে বলা হয়েছে, অনেক দিন ধরেই অধ্যক্ষ ওই নারীকে যৌনতার প্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। স্বামীকে ছেড়ে তার কাছে যেতে বলেছিলেন। রাজি না হওয়ায় তাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হচ্ছিল।

এসব অভিযোগ নাকচ করে অধ্যক্ষ কামরুজ্জামান বলেন, ‘এসব মিথ্যা। অভিযোগকারীকে পাঁচ হাজার টাকার একটি বিল না দেয়ার কারণে মিথ্যা অপবাদ দিয়েছেন।’

ইউএনও জানান, ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে প্রধান করে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে নিয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তাদের প্রতিবেদন পেলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার মামলায় শিক্ষককে এক বছরের দণ্ড
ফ্যান ছিটকে চোখ হারানো শিক্ষিকাকে দেখতেও যায়নি কেউ
ছাত্রীর ‘শ্লীলতাহানি’, প্রধান শিক্ষকের অপসারণ চেয়ে বিক্ষোভ
মাদ্রাসাশিক্ষককে মারধর: ইউপি চেয়ারম্যান গ্রেপ্তার
চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে লাঞ্ছনার মামলা মাদ্রাসা অধ্যক্ষের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Jannatul went to the hotel with Rezaul

‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’

‘রেজাউলের সঙ্গেই হোটেলে যান জান্নাতুল’ রেজাউল করিম ও জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। ছবি: সংগৃহীত
রাজধানীর পান্থপথের ‘ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট’ নামের হোটেল থেকে বুধবার রাতে মরদেহটি উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ। ২৭ বছর বয়সী ওই চিকিৎসকের নাম জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। তিনি ঢাকা কমিউনিটি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল থেকে এমবিবিএস করেছেন। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে একটি কোর্সে পড়ছিলেন।

রাজধানীর পান্থপথের ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্ট নামের আবাসিক হোটেলে বুধবার সকাল ৮টায় আসেন ব্যাংকের সাবেক কর্মকর্তা রেজাউল করিম। সঙ্গে ছিলেন সদ্য এমবিবিএস পাশ করা জান্নাতুল নাঈম সিদ্দীক। হোটেলের কক্ষটি বাইরে থেকে তালা দিয়ে সাড়ে ১০টার দিকে বেরিয়ে যান রেজাউল। এরপর তিনি ফিরে আসেননি।

হোটেলটি থেকে বুধবার রাতে জান্নাতুলের গলাকাটা মরদেহ উদ্ধার করে কলাবাগান থানা পুলিশ। এরপর খোঁজ শুরু হয় রেজাউলের। অনুসন্ধানের এক পর্যায়ে র‍্যাব চট্টগ্রাম মহানগরী থেকে রেজাউলকে গ্রেপ্তার করে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। তবে জান্নাতুলকে হত্যার কারণসহ রহস্যজট কাটেনি প্রাথমিক তদন্তে।

হোটেল স্টাফদের দেয়া তথ্য ও ফুটেজ বিশ্লেষনে জানা যায়, রেজাউল ও জান্নাতুল হোটেলের চতুর্থ তলার ৩০৫ নম্বর কক্ষে ছিলেন। রেজাউল বের হয়ে যাওয়ার পর কক্ষটি দীর্ঘ সময় বাইরে থেকে তালাবদ্ধ ছিল। দীর্ঘসময় কক্ষ তালাবদ্ধ দেখে রাত ৯টার দিকে কলাবাগান থানা পুলিশকে খবর দেয় হোটেল কর্তৃপক্ষ। পরে পুলিশ ওই কক্ষের বিছানা থেকে গলাকাটা অবস্থায় জান্নাতুলের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা শফিকুল আলম কলাবাগান থানায় মামলা করেছেন। আসামি করা হয়েছে রেজাউল ও অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের। জান্নাতুলকে কেন হত্যা করা হয়েছে, সে ব্যাপারে ধারণা দিতে পারেননি স্বজনরা।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রেজাউল করিম রেজাকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

শুক্রবার সংবাদ সম্মেলন করে র‍্যাব জান্নাতুল হত্যার বিস্তারিত তথ্য জানাবে।

পুলিশ জানিয়েছে, মরদেহ উদ্ধারের পর ফ্যামিলি সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্টের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষন করা হয়। ওই হোটেলের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিদের কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

প্রাথমিক তদন্তে জানা যায়, ভিকটিম ও আসামি ঘটনার আগেরদিনও স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে হোটেলে যান। তারা বেলা ১টা থেকে বিকেল ৫ পর্যন্ত সেখানে অবস্থান করেন। বুধবার সকাল আটটায় তারা আবার যান সেখানে। কিন্তু দুই ঘণ্টা পর একা বেরিয়ে যান রেজাউল।

কলাবাগান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, বুধবার সকাল ৮টা থেকে ১০টার মধ্যে নারী চিকিৎসককে হত্যা করা হয় বলে ধারণা মিলেছে। তবে কেন তাকে হত্যা করা হয়েছে, তা জানা যায়নি। রেজাউলের সঙ্গে জান্নাতুল দুই দফা হোটেলটিতে যান, সে বিষয়ে প্রমাণ মিলেছে।

‘রেজাউলকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে হত্যার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পাওয়া যাবে। এ দুজনের রুমে ঢোকার পর অন্য কাউকে সেখানে যেতে দেখা যায়নি। রেজাউল কক্ষটি বাইরে থেকে তালাবদ্ধ করে বেরিয়ে যান।’

নিহত জান্নাতুলের গ্রামের বাড়ি নরসিংদী, রেজাউল করিমের বাড়ি কক্সবাজার। তাদের দুজনের সম্পর্ক পরিবার মেনে নেয়নি বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে জান্নাতুলের মরদেহ তার গ্রামের বাড়িতে নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
নারী চিকিৎসক হত্যায় যুবক আটক
রাজধানীর হোটেলে নারী চিকিৎসকের গলা কাটা দেহ

মন্তব্য

p
উপরে