× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Mahayagya in four districts on both sides of the Padma Bridge
hear-news
player
print-icon

পদ্মা সেতুর ২ প্রান্তের চার জেলায় মহাযজ্ঞ

পদ্মা-সেতুর-২-প্রান্তের-চার-জেলায়-মহাযজ্ঞ
পদ্মা সেতু কেন্দ্র করে নদীর দুই পারের চার জেলায় বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে। গ্রাফিক্স: নিউজবাংলা
পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প কাজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চলছে মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও ফরিদপুরে। এই প্রকল্পের কাজ ও প্রকল্প ঘিরে যেসব উন্নয়নমূলক কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে সম্প্রতি তা ঘুরে দেখেছে নিউজবাংলা। কথা বলেছে এসব জেলার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে।

মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ও শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্ট দিয়ে পদ্মা নদীর দুই প্রান্তকে যুক্ত করেছে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প। সেতু খুলে যাওয়ায় রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থেকে ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা মোড় যেতে সময় লাগবে মাত্র ৪০ থেকে ৪৫ মিনিট।

ভায়াডাক্ট ছাড়া ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ দ্বিতল এই সেতুর ওপর দিয়ে চার লেন দিয়ে চলবে গাড়ি, এক বছর পর নিচ দিয়ে চলবে ট্রেন। সেতুর তলদেশ দিয়ে যেকোনো ধরনের নৌযান চলাচল করতে পারবে অনায়াসে। সেতুর নিচতলা দিয়ে যাচ্ছে গ্যাসের পাইপলাইন, যে লাইন দিয়ে গ্যাস পৌঁছাবে এই জনপদসহ আশপাশের অনেক জেলায়।

তাই পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের কাজের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড চলছে মুন্সীগঞ্জ, শরীয়তপুর, মাদারীপুর ও ফরিদপুরে। এই প্রকল্পের কাজ ও প্রকল্প ঘিরে যেসব উন্নয়নমূলক কর্মযজ্ঞ শুরু হয়েছে সম্প্রতি তা ঘুরে দেখেছে নিউজবাংলা। কথা বলেছে এসব জেলার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের সঙ্গে।

সেতুকে কেন্দ্র করে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে যেসব প্রকল্পের কাজের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে, তা দেখে জীবনমান উন্নয়নের স্বপ্ন দেখছেন একসময়কার অবহেলিত এই জনপদের মানুষ।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লি

পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার নাওডোবা এবং মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার কুতুবপুর মৌজার প্রায় ১২০ একর (১১৯.৭৩ একর) জমিতে হচ্ছে শেখ হাসিনা তাঁত পল্লি। প্রকল্পের পাশেই পদ্মা সেতুর শরীয়তপুর প্রান্তের রেলস্টেশন।

এই স্টেশনের কারণে এখানকার তাঁতিরা কাঁচামাল সংগ্রহ ও উৎপাদিত পণ্য সহজে আনা-নেয়া করতে পারবেন। স্থানীয় লোকজন মনে করছেন, শেখ হাসিনা তাঁত পল্লি প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে বিপুলসংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হবে।

প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ তাঁত বোর্ড। বর্তমানে প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজ চলছে। এর জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০৭ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। এর পুরোটাই সরকারি তহবিল থেকে দেয়া হচ্ছে। প্রথম পর্যায়ের এই কাজের মেয়াদ ২০১৮ সালের জুলাই থেকে ২০২২ সালের জুন পর্যন্ত হলেও আরও কিছুটা সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প পরিচালক।

প্রকল্প সূত্রে জানা যায়, সরকার তাঁতশিল্পের উন্নয়নে বহুমুখী প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে স্থায়ী তাঁত পল্লি নির্মাণ অন্যতম। শরীয়তপুর জেলার জাজিরার নাওডোবা ইউনিয়নের নাওডোবা মৌজায় ৫৯.৭৩ একর ও মাদারীপুর জেলার শিবচরের কুতুবপুর মৌজায় ৬০ একর করে মোট ১১৯.৭৩ একর জমিতে এ শিল্প স্থাপন করা হবে।

প্রশাসনিক আদেশের পর জমি অধিগ্রহণের কাজ শেষ করেছে জেলা প্রশাসন। প্রকল্পের আওতায় মোট ৮ হাজার ৬৪টি তাঁত শেড নির্মাণ করা হবে। যেখানে ৮০৬৪ তাঁতিকে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা দেয়া হবে। বার্ষিক উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে প্রায় ৪ দশমিক ৩১ কোটি মিটার কাপড়।

প্রকল্প এলাকা ঘুরে ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ভূমি অধিগ্রহণ শেষে ভরাটের মাধ্যমে চলছে ভূমি উন্নয়নকাজ। এরপর শুরু হবে অবকাঠামো উন্নয়নকাজ। কর্মসংস্থানের পাশাপাশি তাঁতিদের দক্ষতা বৃদ্ধি, পণ্যের গুণগত মান উন্নয়ন, বাজারজাতকরণ, পণ্যের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে তাঁতবস্ত্র সরবরাহের মাধ্যমে তাঁতিদের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্য নিয়েই তাঁত পল্লি গড়ে উঠছে।

তাঁত বোর্ডের কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রকল্পটির আওতায় তাঁতিদের কাপড় বোনার আগে ও পরে বিভিন্ন সুবিধা দেয়া হবে। সেখানে তাঁতিদের জন্য থাকবে আবাসিক ভবন, তাঁত শেড, ডরমিটরি, রেস্টহাউস, সাইবার ক্যাফে ও বিদ্যুতের উপকেন্দ্র। সপ্তাহে এক বা দুই দিন তাঁতপণ্যের হাট বসানোর চিন্তা রয়েছে। যে হাটে সুতাসহ বিভিন্ন কাঁচামাল বিক্রয় ও প্রদর্শনী হবে। মূলত তাঁতের কাপড় বোনা থেকে শুরু করে পোশাক তৈরি ও বিক্রি পর্যন্ত সব ব্যবস্থাই করা হবে পুরো প্রকল্পের আওতায়।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লির (প্রথম পর্যায়) প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মাদ জাহাঙ্গীর আলী খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ে আমরা শুধু ভূমি অধিগ্রহণ, ভূমি উন্নয়ন আর সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ করছি। এরই মধ্যে ভূমি অধিগ্রহণ হয়ে গেছে। বালু ভরাটের কাজও প্রায় শেষের পথে। করোনার কারণে আমাদের কাজ একটু পিছিয়ে পড়েছে। তাই আমরা আমাদের নির্ধারিত সময় ২০২২ সালের ৩০ জুনের মধ্যে প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ করতে পরিনি। আরও কিছুটা সময় বৃদ্ধির জন্য আমরা আবেদন করেছি।’

তিনি জানান, প্রকল্পের দ্বিতীয় পর্যায়ে মূলত তাঁত পল্লির অবকাঠামো তৈরির যাবতীয় কাজ হবে। একটি আদর্শ তাঁত পল্লিতে যা যা থাকা উচিত তার সবই থাকবে সেখানে।

শেখ হাসিনা তাঁত পল্লি প্রকল্পের আওতায় কী কী হবে, তার একটা খসড়া করা হয়েছে জানিয়ে প্রকল্প পরিচালক বলেন, ‘প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষে আমরা তাঁত পল্লি উন্নয়নের এই খসড়া পরামর্শক প্রতিষ্ঠানকে দেব। তারা এগুলো দেখে প্রয়োজনে নতুন কিছু যোগ করতে পারে, নাও পারে। সব মিলিয়ে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান শেখ হাসিনা তাঁত পল্লির একটা মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করবে। পরে সেটা একনেকে পাস হলেই দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ শুরু হবে।’

জাহাঙ্গীর আলী খান বলেন, ‘আমরা আশা করছি, এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে তাঁতশিল্প অনেক দূর এগিয়ে যাবে। কারণ পদ্মার ওই এলাকা হবে পর্যটকদের জন্য আকর্ষণীয় জায়গা। মানুষ সেখানে ঘুরতে গিয়ে এই তাঁত পল্লির সঙ্গে পরিচিত হবে। তারা তাঁতের বিভিন্ন সামগ্রী কেনাকাটা করবে।’

নিউজবাংলার সঙ্গে কথা হয় পশ্চিম নাওডোবা ইউনিয়নের জমাদ্দারকান্দি গ্রামের মহসীন জমাদ্দারের, যার বাড়ি তাঁত পল্লির পাশেই। পদ্মা সেতু আর এই তাঁত পল্লি তাকে নতুন স্বপ্ন দেখাচ্ছে।

মহসীন জমাদ্দার বলেন, ‘রাস্তার পাশেই আমার মুদি দোকান, দই-মিষ্টিও বেচি। এখানে তাঁত পল্লি হলে অনেক মানুষ আসবে, বেচাবিক্রি বাড়বে। তাই চিন্তা করছি, ডেইরি খামার দেব। খামারের দুধ দিয়ে উন্নতমানের মিষ্টি বানাব।

‘আশা করছি, সেই মিষ্টির জন্য এখানে যারা আসবে, তারা খেতে পারবে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের লোক কিনেও নিয়ে যেতে পারবে। তাঁত পল্লিতে যেমন এলাকার লোকের কাজ হবে। আমরা যারা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গড়ব, সেখানেও এলাকার মানুষ কাজ পাবে।’

আলতাফ হোসেন নামের এক স্থানীয় বাসিন্দা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের এলাকাটি ছিল খুব অনুন্নত। এখন পদ্মা সেতু হয়েছে, তাঁত পল্লি হচ্ছে। এই এলাকা এখন শহরের মতো হয়ে যাবে। আলো ঝলমল করবে। দেশি-বিদেশি মানুষ আসবে। আমাদের এলাকাটি হবে পর্যটন এলাকা। এ কথা ভাবতেই আনন্দ লাগছে।’

এই তাঁত পল্লি হওয়ার খবর শুনে পাবনা থেকে ব্যবসা করতে এখানে এসে থাকছেন বিল্লাল হোসেন। এখন ভাঙারির ব্যবসা করছেন। প্রকল্পের পাশেই জমি কেনার চিন্তা তার।

নিউজবাংলাকে বিল্লাল বলেন, ‘আমি এই এলাকার না, ব্যবসা করতে আসছি। এখানে তাঁত পল্লি হলে বিভিন্ন জায়গার লোকজন আসা-যাওয়া করবে। ব্যবসা-বাণিজ্যের মান বাড়বে। এলাকাটি গ্রাম থেকে শহরে পরিণত হবে। তাই আমি পাবনা থেকে এসেছি। অনেক দিন ধরেই ভাঙারির ব্যবসা করছি।

‘এখন তাঁত পল্লি ঘিরে নতুন ব্যবসার চিন্তা করছি। এখানে বিনিয়োগ হবে বুদ্ধিমানের। আমার মতো অনেকেই আসছেন, ঘুরে ঘুরে দেখছেন। এভাবে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিনিয়োগকারীরা আসবেন। এলাকাটি হবে দর্শনীয় ও বাণিজ্যিক এলাকা।’

প্রকল্প সম্পর্কে জানতে চাইলে শরীয়তপুরের জেলা প্রশাসক মো. পারভেজ হাসান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শেখ হাসিনা তাঁত পল্লি দেশের একটি ঐতিহ্যবাহী শিল্পকে টিকিয়ে রাখার প্রয়াস। ফলে উন্নত হবে দেশের তাঁতশিল্প। জীবনমানের উন্নয়ন ঘটবে তাঁতিদের। ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটবে তাঁতিদের। একই সঙ্গে এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্যোন্নয়ন ঘটবে। স্থানীয় মানুষের জন্য সৃষ্টি হবে নতুন নতুন কর্মসংস্থান।’

পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে পদ্মার এই পারে শুধু এই তাঁত পল্লিই নয়, হবে আইটি পার্কও। ইতিমধ্যে মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় আইটি পার্কটি গড়ে তোলার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রকল্প বাস্তবায়নের অংশ হিসেবেই পদ্মা-তীরবর্তী শিবচরে এই প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। এর বাইরে আরও অনেক ছোট-বড় প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে শেখ হাসিনা টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, শেখ রাসেল শিশুপার্ক, বঙ্গমাতা ফজিলাতুন নেছা মুজিব নার্সিং ইনস্টিটিউট অ্যান্ড কলেজ, আইএইচটি ভবন, ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র, শিল্পকলা একাডেমি ভবন, মুক্তমঞ্চ ও অলিম্পিক ভিলেজ। সিঙ্গাপুরের আদলে গড়ে তোলা হবে বিসিক ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক ও আইকন টাওয়ার।

আইটি পার্ক

ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ের পাশে শিবচরের কুতুবপুরের কেশবপুরে শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অফ ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি অ্যান্ড হাইটেক পার্ক নির্মাণে ৭০ দশমিক ৩৪ একর জায়গা নির্ধারণ করেছে আইসিটি মন্ত্রণালয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এই প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ জহুরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গত ২২ মে এই প্রকল্প শুরু করার জন্য প্রশাসনিক আদেশ জারি হয়েছে। এখন প্রকল্পের কনসালট্যান্ট নিয়োগের জন্য প্রপোজাল দেয়া হয়েছে। আর ভূমি অধিগ্রহণের জন্য আমরা মাদারীপুরের জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছি। তারা কিছুদিনের মধ্যেই এই কাজ শুরু করবে। আশা করছি আগামী অক্টোবর-নভেম্বর মাসে অবকাঠামো নির্মাণ কাজ শুরু করতে পারব।

‘ইতিমধ্যে ওই এলাকায় জায়গা নির্ধারণ হয়ে গেছে। এই প্রকল্প বস্তবায়নের জন্য ১ হাজার ৫০৩ কোটি টাকার মতো খরচ হবে বলে আমরা অনুমান করেছি।’

প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ জহুরুল ইসলাম বলেন, ‘এই প্রকল্পটা বাস্তবায়ন হলে, ওই এলাকায় বিরাট পরিবর্তন আসবে। শুধু ওই এলাকায়ই না, পুরো দেশটাকে টার্গেট করে এই প্রকল্পটা বাস্তবায়ন করা হবে। মেধাবী সমাজ গঠনের যে কথা বলা হচ্ছে, এখানে সেই মেধাবী তৈরির কাজ হবে।

‘প্রযুক্তি নিয়ে রিসার্চ হবে। বিকেএসপি যেমন খেলোয়াড় তৈরি করে, তেমনি এখানে আগামী দিনের আইটি বিশেষজ্ঞ তৈরি হবে। এখানে হয়তো প্রত্যক্ষ-পরোক্ষভাবে ২০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে। কিন্তু সেটা গুরুত্বপূর্ণ না, গুরুত্বপূর্ণ হলো এখান থেকে অসংখ্য আইটি বিশেষজ্ঞ বের হবে, তারা সারা দেশে ভূমিকা রাখবে।’

মাদারীপুর জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে জেলার বিভিন্ন এলাকায় আরও অনেক উন্নয়নমূলক কাজ হচ্ছে।

সেগুলোর মধ্যে রয়েছে রেজাউল করিম তালুকদার টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, ন্যাশনাল জুডিশিয়াল একাডেমি এবং সার্কেল এএসপি অফিস-কাম-বাসভবন, বেগম রোকেয়া কর্মজীবী মহিলা হোস্টেলসহ ট্রেনিং সেন্টার ও ডে-কেয়ার সেন্টার, শিবচর পৌর বাস টার্মিনাল, ট্রমা সেন্টার, শিবচর হাইওয়ে থানা, হাজি আবুল কাসেম উকিল ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র, চৌধুরী ফাতেমা বেগম ১০ শয্যাবিশিষ্ট মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র এবং উপজেলা সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

ইলিয়াস আহম্মেদ চৌধুরীর (দাদা ভাই) নামে শিবচর উপজেলায় ‘দাদা ভাই উপশহর’ হাউজিং প্রকল্পে ৮৭৮টি প্লট প্রস্তুতির কাজ ও বরাদ্দ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। ইতোমধ্যে কিছু বহুতল ভবন হয়েছে এবং সেগুলোতে মানুষ বসবাস করা শুরু করেছে। প্রায় ১০৫ একর জমিতে গড়ে ওঠা এই প্রকল্পে ১ লাখের বেশি মানুষের আবাসন হবে।

মাদারীপুর সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি খান মো. শহীদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘পদ্মা সেতু মানুষের যোগাযোগব্যবস্থা সহজ করে দেবে। পদ্মায় ধরা মাছ যেমন সহজেই কারওয়ান বাজারে যাবে, তেমনি যেকোনো কৃষিপণ্য দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা যাবে। ফলে কৃষক, জেলেসহ সব পেশার মানুষ সরাসরি লাভবান হবেন।’

তিনি বলেন, ‘তাঁত পল্লি ও আইটি পার্কের মতো প্রকল্প এই জনপদের জন্য আশীর্বাদ। এসব প্রকল্পে যাতে অনিয়ম-দুর্নীতি না হয়, সেদিকে সরকারের কড়া নজরদারি থাকা উচিত। অন্যথায় এসব প্রকল্পের উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন কঠিন হয়ে পড়বে।’

সাজছে মুন্সীগঞ্জ

এই জেলার ওপর দিয়েই নান্দনিক ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা এক্সপ্রেসওয়ে গেছে। অল্প সময়েই এখানকার মানুষ রাজধানী ঢাকায় যেতে পারছেন। বাড়িতে থেকেও অনেকে রাজধানীতে গিয়ে অফিস ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন।

এই এক্সপ্রেসওয়ে আর পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে সাজছে মুন্সীগঞ্জ। বেড়েছে এখানকার জমির দাম। হচ্ছে নতুন নতুন আধুনিক আবাসিক এলাকা। গড়ে উঠছে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, কলকারখানাসহ নানা অবকাঠামো। এই এলাকার অনেক লোকেরই কর্মসংস্থান সৃষ্টি হয়েছে পদ্মা সেতুতে।

দৃষ্টি কেড়েছে ভাঙ্গা মোড়

পদ্মা সেতুর মতোই আরেক বিস্ময় হয়ে দেখা দিয়েছে ফরিদপুরের ভাঙ্গা গোলচত্বর। এখানকার বর্তমান দৃশ্য দেখলে মনে হয়, এটি উন্নত কোনো দেশের সড়ক জংশন, যা আসলে ভাঙ্গা উপজেলার গোলচত্বর।

এই গোলচত্বরের সৌন্দর্য দেখতে প্রতিদিনই অনেক মানুষ ভিড় করছেন।

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুর আলোকচ্ছটা প্রবাসেও
সেতুতে নিষ্প্রাণ হওয়ার পথে পদ্মার ফেরি-লঞ্চঘাট
আমন্ত্রণপত্র পাননি খালেদা, গ্রহণ ইউনূসের
কেউ যাবেন ব্যক্তি উদ্যোগে, কেউ প্যাকেজে
প্রধানমন্ত্রীর জনসভা ঘিরে নিরাপত্তা নিশ্চিতে প্রস্তুত র‍্যাব

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
No increase in oil and gas prices PM

তেল, গ্যাসের দাম বাড়াব না: প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা

তেল, গ্যাসের দাম বাড়াব না: প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা ছবি: সংগৃহীত
‘আন্তর্জাতিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে জ্বালানি তেল, প্রাকৃতিক গ্যাসে সরকারের যে ঘাটতি হবে তা আমরা মূল্য বাড়িয়ে ভোক্তা পর্যায়ে চাপিয়ে দেবো না। যার কারণে ভর্তুকি ব্যয় বাড়বে। ভর্তুকি ব্যয় সহনশীল রাখা এবং আমদানির উপর চাপ কমানোর লক্ষ্যে যথাযথ ব্যবস্থা ব্যবস্থা সরকার নেবে। জনগণকেও নিজ নিজ জায়গা থেকে ভূমিকা পালন করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যাপক মূল্য বৃদ্ধির পরও জ্বালানি তেল ও গ্যাসের দাম না বাড়ানোর কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জ্বালানির দাম আবার বাড়তে পারে বলে আলোচনার মধ্যেই জাতীয় সংসদে স্বস্তির এই বার্তা দিলেন সরকার প্রধান।

বুধবার রাতে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তব্য রাখছিলেন তিনি।

বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিতে দিনে ১০০ কোটি টাকার বেশি লোকসান দিয়ে চলেছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)। ধারাবাহিক ভর্তুকির চাপে সরকার জ্বালানির দর সমন্বয়ের কথা ভাবছে বলে গত ১৪ জুন জানান বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু।

সেদিন বিদ্যুৎ ভবনে এক সেমিনারে তিনি বলেন, ‘বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। বিপিসি প্রতিদিন শত কোটি টাকা লোকসান দিচ্ছে। গ্রাহকেরা চাপে পড়ুক এটাও সরকার চায় না। তবে এটা সবার জন্য সহনীয় পর্যায়ে রাখতে সরকার কাজ করছে।

‘বর্তমানে বিশ্ব যে অবস্থার মধ্য দিয়ে যাচ্ছে এবং দেশের বর্তমান যে অবস্থা তাতে এই সময়ে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করব কিনা, সেটা আগে ভাবতে হবে। এ নিয়ে কাজ করছে সরকার। তবে গ্রাহকের জন্য যেন দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকে সে বিষয়টি আগে দেখা হবে।’

সবশেষ গত ৩ নভেম্বর ডিজেলের দর লিটারে ১৫ টাকা বাড়ায় সরকার। এর প্রভাবে পরিবহন ভাড়া বেড়ে গেছে অনেকটাই। এর প্রভাব আবার পড়েছে পণ্যমূল্যে।

ইউক্রেন যুদ্ধের পরিপ্রেক্ষিতে বিশ্বজুড়ে মূল্যস্ফীতির যে সমস্যা দেখা দিয়েছে, তার বাইরে নয় বাংলাদেশও। এর মধ্যে জ্বালানির দাম আবার বাড়লে পরিস্থিতি কী হয় তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী আপাতত সেই শঙ্কা দূর করলেন। তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মূল্যবৃদ্ধির কারণে জ্বালানি তেল, প্রাকৃতিক গ্যাসে সরকারের যে ঘাটতি হবে তা আমরা মূল্য বাড়িয়ে ভোক্তা পর্যায়ে চাপিয়ে দেবো না। যার কারণে ভর্তুকি ব্যয় বাড়বে। ভর্তুকি ব্যয় সহনশীল রাখা এবং আমদানির উপর চাপ কমানোর লক্ষ্যে যথাযথ ব্যবস্থা ব্যবস্থা সরকার নেবে। জনগণকেও নিজ নিজ জায়গা থেকে ভূমিকা পালন করতে হবে।’

দীর্ঘ বক্তব্যে সরকার প্রধান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে জনগণকে মিতব্যয়ী হওয়ার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি বিলাস দ্রব্য পরিহার এমনকি দেশেই চিকিৎসা নেয়ার অনুরোধ করেন।

তিনি বলেন, ‘প্রত্যেককে তার নিজ নিজ জায়গা থেকে যতটুকু সম্ভব কৃচ্ছ সাধন করতে হবে, ব্যক্তিগত সঞ্চয় করতে হবে। প্রত্যেকের নিজস্ব সঞ্চয় বাড়ানো এবং প্রত্যেককে মিতব্যয়ী হতে হবে।

‘দেশীয় পণ্যের ব্যবহার বাড়াতে হবে। কথায় কথায় দৌড়ায়ে বিদেশে যেয়ে চিকিৎসা নেয়া যাবে না। দেশেও ভালো চিকিৎসা হয়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘একে তো করোনা মহামারির নেতিবাচক প্রভাব, তার ওপর মরার ওপর খাড়ার ঘাঁ হিসেবে এসেছে রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধ। এসব প্রতিকূলতা মোকাবেলা করেই এগিয়ে যেতে হবে।’

আরও পড়ুন:
বিশ্ববাজারে কমছে জ্বালানি তেলের দাম
জ্বালানি তেলের দাম আবার বাড়ানোর চিন্তা
বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম ফের বাড়ছে
বাংলাদেশে তেল বিক্রি করতে চায় রাশিয়া: প্রতিমন্ত্রী
ভারতে পেট্রল-ডিজেলের দাম কমল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The proposal to bring movable and immovable property in the country was rejected

স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল

স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল সংসদে বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ফাইল ছবি
জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটে স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ আনার ক্ষেত্রে যে সুযোগ রাখা হয়েছিল তা বাতিল করা হয়েছে। একইসঙ্গে কম হারে করপোরেট কর সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রেও সংশোধন আনা হয়েছে।

বিদেশে পাচার করা অর্থ-সম্পদ ফেরত আনার ক্ষেত্রে প্রস্তাবিত সুযোগ-সুবিধায় বড় ধরনের পরিবর্তন এনে অর্থবিল বিল-২০২২ পাস হয়েছে। পরিবর্তনের মধ্যে স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ আনার ক্ষেত্রে বাজেটে প্রস্তাবিত সুযোগ বাতিল করা হয়েছে।

বুধবার জাতীয় সংসদে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর এসব সংশোধনী আনেন। পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়।

প্রস্তাবিত বাজেটে আনা সংশোধনীগুলোর মধ্যে রয়েছে- ৭ শতাংশ কর দিয়ে শুধু পাচার করা নগদ টাকা দেশে আনা যাবে। যারা সরকারের দেয়া এই সুযোগ নেবেন না, তাদেরকে জরিমানার বিধান রাখা হয়েছে। জরিমানার পরিমাণ হবে নির্ধারিত করের সমপরিমাণ।

আর স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ আনার ক্ষেত্রে প্রস্তাবিত বাজেটে যে সুযোগ রাখা হয়েছিল তা বাতিল করা হয়েছে। একইসঙ্গে কম হারে করপোরেট কর সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রেও সংশোধন আনা হয়েছে।

যেসব কোম্পানি বছরে ৩৬ লাখার টাকার বেশি ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করবে তারা কম হারে করপোরেট কর পরিশোধের সুবিধা পাবে। প্রস্তাবিত বাজেটে এই সীমা ছিল বছরে ১২ লাখ টাকা।

এছাড়া সব সেবার ক্ষেত্রে ই-টিআইএন (করদাতা শরাক্তকরণ নম্বর) যুক্ত করে রিটার্ন দাখিলের যে বাধ্যবাধকতা ছিল তাতেও ছাড় দেয়া হয়েছে। কেবল ব্যক্তি-শ্রেণির করদাতাদের জন্য রিটার্ন দাখিল বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

বিস্তারিত আসছে…

আরও পড়ুন:
করপোরেট করের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিল হচ্ছে
মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ
‘ধ্যানের ওপর ভ্যাট’ প্রত্যাহারের প্রস্তাব সংসদে
ব্যবসা সহজ নাকি কঠিন হলো
সরকারি কর্মকর্তাদের জবাবদিহি নিশ্চিতে আলাদা কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Proposal to ban bikes on expressways

এক্সপ্রেসওয়েতে বাইক নিষিদ্ধের প্রস্তাব

এক্সপ্রেসওয়েতে বাইক নিষিদ্ধের প্রস্তাব
এই মহাসড়ক ঘেঁষে ধীর গতির যান চলাচলে এবং স্থানীয়দের চলাচলের জন্য আলাদা লেন আছে। একে বলা হচ্ছে সার্ভিস লেন। এক্সপ্রেসওয়েতে নিষিদ্ধ হলে এই পথে চলতে পারবে বাইক। এক্সপ্রেসওয়েতে যেমন বিনা বাধায় চলা যায়, এই লেনে সে সুযোগ নেই। সেখানে ক্রসিং আছে।

ঢাকা থেকে মাওয়া হয়ে ভাঙ্গা পর্যন্ত দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়েতে মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করতে চায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। এ জন্য সরকারের কাছে প্রস্তাবও পাঠিয়েছে তারা।

ঢাকায় সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের সদরদপ্তরে একটি চুক্তি সই অনুষ্ঠানে এ কথা জানিয়েছেন সংস্থাটির প্রধান প্রকৌশলী এ কে এম মনির হোসেন।

কোরিয়ান এক্সপ্রেসওয়ে করপোরেশনের পরিচালনায় এক্সপ্রেসওয়ের রক্ষণাবেক্ষণ, যানবাহন থেকে টোল সংগ্রহ এবং এক্সপ্রেসওয়েতে আইটিএস স্থাপনে চুক্তি সই করে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর।

মনির হোসেন বলেন, ‘আমরা ইতোমধ্যে এক্সপ্রেসওয়েতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করার একটি প্রস্তাব পাঠিয়েছি।’

সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনার পর এক্সপ্রেসওয়েতে মোটরসাইকেল নিষিদ্ধ করার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

শেষ পর্যন্ত এই প্রস্তাবটি পাস হলে মোটরসাইকেলচালক বা বাইকাররা এই মহাসড়ক ব্যবহার করে পদ্মা সেতুতে ওঠার অধিকার একেবারে হারাতে যাচ্ছেন।

এক্সপ্রেসওয়েতে যদি বাইক নিষিদ্ধ হয়েই যায়, তার পরেও মোটরসাইকেল চালিয়ে পদ্মা সেতু পাড়ি দেয়ার সুযোগ রাখা হচ্ছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মনির হোসেন জানান, এক্সপ্রেসওয়েতে নিষিদ্ধ হলেও সার্ভিস লেনে মোটরসাইকেল চলাচলের অনুমতি দেয়া হবে।

এই মহাসড়ক ঘেঁষে ধীর গতির যান চলাচলে এবং স্থানীয়দের চলাচলের জন্য আলাদা লেন আছে। একে বলা হচ্ছে সার্ভিস লেন। এক্সপ্রেসওয়েতে যেমন বিনা বাধায় চলা যায়, এই লেনে সে সুযোগ নেই। সেখানে ক্রসিং আছে।

বহুল প্রতীক্ষার সেতুটি খুলে দেয়ার প্রথম দিনই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারা যান দুই আরোহী। সেতুতে প্রতি ঘণ্টায় ৬০ কিলোমিটার গতি নির্ধারণ করে দেয়ার পরও বাইকার অনিয়ন্ত্রিত গতিতে বাইক চালোনার অভিযোগ এসেছে। তাড়াহুড়ো করতে গিয়েও সমালোচিত হয়েছেন বাইকাররা।

এমন বাস্তবতায় ২৭ জুন সকাল ৬টা থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করে সেতু কর্তৃপক্ষ।

পরে জানানো হয়, সেতুতে স্পিডগান ও ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসিয়ে বাইক পারাপারের আবার সুযোগ দেয়া হবে। তবে কবে সেই কাজ শেষ হবে, সে বিষয়ে সুনির্দিষ্ট তথ্য কেউ দেননি।

এরই মধ্যে এক্সপ্রেসওয়েতে চলাচল করতে টোল আরোপ করা হয়েছে। কোন বাহনকে কত টাকা দিতে হবে, সেটিও জানানো হয়েছে। এর মধ্যে আছে বাইকও। জানানো হয়েছে, ঢাকা থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত চলাচলে একেকটি মোটরসাইকেল থেকে ৩০ টাকা আদায় করা হবে।

আরও পড়ুন:
চট্টগ্রামকে নান্দনিক করবে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে
পরিবারের সঙ্গে ঈদ করা হলো না মিলনের
বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার ধসে চীনা নাগরিকসহ আহত ৪
এক্সপ্রেসওয়ে হচ্ছে নবীনগর-পাটুরিয়া সড়ক
মাথা তুলছে চট্টগ্রাম এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Destinys 4 officers are in jail

ডেসটিনির ৪ কর্মকর্তা কারাগারে

ডেসটিনির ৪ কর্মকর্তা কারাগারে প্রতীকী ছবি
কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন- ডেসটিনি গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর সাকিবুজ্জামান খান (অব.), সহযোগী প্রতিষ্ঠান বেস্ট এভিয়েশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মোল্লা আল আমিন, সুনীল বরণ কর্মকার ও হেড অব ফাইন্যান্স কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিম।

আত্মসমর্পণের পর জামিন পাননি ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির সাজা পাওয়া চার কর্মকর্তা। আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে।

গ্রাহকদের ৪ হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় আদালত ডেসটিনি গ্রুপের কর্মকর্তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজার রায় দেয়। তখন চার আসামি পলাতক থাকায় তাদের নামে পরোয়ানা জারি হয়।

বুধবার ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলমের উপস্থিতিতে আসামিরা আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাদের জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।

কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন- ডেসটিনি গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর সাকিবুজ্জামান খান (অব.), সহযোগী প্রতিষ্ঠান বেস্ট এভিয়েশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মোল্লা আল আমিন, সুনীল বরণ কর্মকার ও হেড অব ফাইন্যান্স কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিম।

এ মামলায় গত ১২ মে রায় দেন ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম।

রায়ে অন্য আসামিদের পাশাপাশি মেজর সাকিবুজ্জামান খানের (অব.) পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ১ কোটি টাকা জরিমানা হয়। মোল্লা আল আমিনের চার বছরের কারাদণ্ড ও ১০ লাখ টাকা জরিমানা, সুনীল বরণ কর্মকারের ৮ বছর কারাদণ্ড ও ৫ কোটি টাকা জরিমানা এবং কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিমের পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেয় আদালত।

আরও পড়ুন:
ডেসটিনির এমডি রফিকুল আমীনের স্ত্রী কারাগারে
ডেসটিনির হারুনসহ ৪৫ জনের সাজা বাড়াতে আবেদন
অর্থপাচার: ডেসটিনির এমডি রফিকুলের ১২ বছরের কারাদণ্ড
ডেসটিনির অর্থ আত্মসাৎ ও পাচার মামলার রায় ১২ মে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
2 years delay from Padma bridge due to conspiracy PM

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু হতে ২ বছর বিলম্ব: প্রধানমন্ত্রী

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু হতে ২ বছর বিলম্ব: প্রধানমন্ত্রী পদ্মায় সেতু। ফাইল ছবি
জাতীয় সংসদে প্রশ্নোত্তর পর্বে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশের কোটি কোটি মানুষের সঙ্গে আমিও আনন্দিত, গর্বিত, উদ্বেলিত। অনেক বাধা-বিপত্তি আর ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে আজ বহুল কাঙ্ক্ষিত সেতু দাঁড়িয়ে গেছে।’

ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু নির্মাণে দুই বছর বিলম্বিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ‘যাতে পদ্মা সেতু না হয় সে লক্ষ্যে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র হলেও আমরা হতোদ্যম হইনি। সব ষড়যন্ত্র আর বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে পদ্মা সেতু আজ দৃশ্যমান।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বুধবার সংসদ অধিবেশনের প্রশ্নোত্তর পর্বে প্রধানমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মেরিনা জাহানের এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের কোটি কোটি মানুষের সঙ্গে আমিও আনন্দিত, গর্বিত, উদ্বেলিত। অনেক বাধা-বিপত্তি আর ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে প্রমত্তা পদ্মার বুকে আজ বহুল কাঙ্ক্ষিত সেতু দাঁড়িয়ে গেছে।

‘পদ্মা সেতু শুধু ইট-সিমেন্ট-স্টিল-লোহা-কংক্রিটের একটি অবকাঠামো নয়। এই সেতু আমাদের অহঙ্কার, আমাদের গর্ব, আমাদের সক্ষমতা আর মর্যাদার প্রতীক। এই সেতু বাংলাদেশের জনগণের। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে আমাদের আবেগ, সৃজনশীলতা, সাহসিকতা, সহনশীলতা এবং প্রত্যয়। একইসঙ্গে রয়েছে- আমরা এ সেতু করবোই, সেই জেদ।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘শেষ পর্যন্ত অন্ধকার ভেদ করে আমরা আলোর মুখ দেখেছি। পদ্মার বুকে জ্বলে উঠেছে লাল, নীল, সবুজ, সোনালি আলো। ৪২টি স্তম্ভ যেন স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেছিলেন, বাঙালিকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না। পারেনি। আমরা বিজয়ী হয়েছি।’

পদ্মা সেতু নির্মাণের ইতিহাস তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার ১৯৯৬ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর পদ্মা সেতু নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। ২০০১ সালের ৪ জুলাই মাওয়া পয়েন্টে আনুষ্ঠানিকভাবে আমি পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করি।

‘২০০১ সালে বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসে মাওয়া প্রান্তে সেতু নির্মাণের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়। তারা জাপান সরকারকে পুনরায় মানিকগঞ্জের আরিচা প্রান্তে পদ্মা সেতুর জন্য সমীক্ষা করতে বলে। দ্বিতীয়বার সমীক্ষার পর জাপান মাওয়া প্রান্তকেই নির্দিষ্ট করে পদ্মা সেতু নির্মাণের প্রতিবেদন পেশ করে।’

সরকার প্রধান বলেন, ‘২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর পদ্মা সেতু নির্মাণকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। নকশা প্রণয়নের লক্ষ্যে পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এরপর প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজে বিস্তারিত ডিজাইন চূড়ান্ত করা হয়। ২০১১ সালের এপ্রিল থেকে জুন মাসের মধ্যে সেতু প্রকল্পে অর্থায়নের বিষয়ে বিশ্বব্যাংক, এশীয় উন্নয়ন প্র্যাংক (এডিবি), জাইকা ও ইসলামী উন্নয়ন ব্যাংকের (আইডিবি) সঙ্গে ঋণ চুক্তি স্বাক্ষর হয়।’

ঠিকাদার নিয়োগে টেন্ডার প্রক্রিয়া চলার সময়ই ষড়যন্ত্র শুরু হয়ে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্পের বিভিন্ন প্যাকেজের নির্মাণ কাজ তদারকির জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠান নিয়োগ প্রক্রিয়ায় দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকা ও আইডিবি ঋণচুক্তি স্থগিত করে।

‘২০১৭ সালে কানাডার টরেন্টোর একটি আদালতে দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হলে বিশ্বব্যাংক এ প্রকল্পে পুনরায় ফিরে আসার ঘোষণা দেয়। তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে দেশ ও জনগণের স্বার্থে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু বাস্তবায়নের সাহসী সিদ্ধান্ত নেই।

‘বহুল কাঙ্ক্ষিত পদ্মা সেতু প্রকল্পের সূচনালগ্নে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র, চ্যালেঞ্জগুলো উত্তরণ এবং হার না মানা সুদৃঢ় মনোবলের মাধ্যমে সব প্রতিকূলতাকে জয় করে এ সেতু আজ স্বপ্ন নয়, একটি দৃশ্যমান বাস্তবতা।’

পদ্মা সেতু চালু হওয়ার ফলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে অন্যান্য অঞ্চলের রেল যোগাযোগ সৃষ্টি, ব্যবসা-বাণিজ্যের বিকাশ, নতুন কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি সর্বোপরি দেশের বিভক্ত দুটি অঞ্চলকে একীভূত করে সার্বিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত করবে বলে সরকারপ্রধান আশা প্রকাশ করেন।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশ এভাবেই এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী
নৌকা ছাড়া বাংলাদেশের গতি নেই: প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
সেপ্টেম্বরের শুরুতে ভারত সফরে যাবেন প্রধানমন্ত্রী
‘সবার অংশগ্রহণে আগামী নির্বাচন অবাধ-সুষ্ঠু হবে’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The maximum toll on Bangabandhu Expressway is 1890 rupees

এক্সপ্রেসওয়েতে বাইকের টোল ৩০, কার ১৪০

এক্সপ্রেসওয়েতে বাইকের টোল ৩০, কার ১৪০
ট্রেইলার ১৬৯০, হেভি ট্রাক ১১০০, মাঝারি ট্রাক ৫৫০, বড় বাস ৪৯০, মিনি ট্রাক ৪১৫, মিনিবাস বা কোস্টার ২৭৫, মাইক্রোবাস ২২০, ফোর হুইলার ২২০, সিডান কার ১৪০ ও মোটরসাইকেলে ৩০ টাকা হারে টোল নির্ধারণ করা হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক্সপ্রেসওয়ে (ঢাকা-মাওয়া-ভাঙ্গা) পার হতে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৬৯০ টাকা টোল নির্ধারণ করেছে সরকার। আর সর্বনিম্ন টোল ধরা হয়েছে ৩০ টাকা। ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সড়কে ১ জুলাই শুক্রবার থেকে নতুন টোল হার কার্যকর হবে।

সড়ক মন্ত্রণালয়ের টোল ও এক্সেল শাখার উপসচিব ফাহমিদা হক খানের সই করা এক প্রজ্ঞাপনে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ১ জুলাই থেকে এই এক্সপ্রেসওয়ে পার হতে একটি ট্রেইলারকে দিতে হবে ১ হাজার ৬৯০ টাকা, হেভি ট্রাক ১ হাজার ১০০ টাকা, মাঝারি ট্রাক ৫৫০ টাকা, বড় বাস ৪৯০ টাকা এবং মিনি ট্রাককে দিতে হবে ৪১৫ টাকা।

এ ছাড়া মিনিবাস বা কোস্টার ২৭৫, মাইক্রোবাস ২২০, ফোর হুইলার যানবাহন ২২০, সিডান কার ১৪০ ও মোটরসাইকেলের জন্য ৩০ টাকা হারে টোল নির্ধারণ করা হয়েছে।

এক্সপ্রেসওয়েতে বাইকের টোল ৩০, কার ১৪০
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক্সপ্রেসওয়ের ঢাকা-মাওয়া অংশ। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

এর আগে সোমবার এই এক্সপ্রেসওয়েতে চলাচলের জন্য মিডিয়াম ট্রাকের ক্ষেত্রে প্রতি কিলোমিটার ১০ টাকা হারে টোল নির্ধারণ করা হয়।

দেশের প্রথম এক্সপ্রেসওয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা চালু হয় ২০২০ সালের ১২ মার্চ। শুরু থেকেই জানানো হয়, এই সড়ক ব্যবহার করতে টাকা দিতে হবে। তবে পদ্মা সেতু চালুর আগ পর্যন্ত টোল বসানো হবে না।

এই সড়কে কয়েকটি সেতুতে আলাদা টোল আছে। এক্সপ্রেসওয়ের টোল চালু হওয়ায় এই সেতুগুলোর জন্য আলাদা কোনো টাকা দিতে হবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ জুন দেশের সবচেয়ে বড় অবকাঠামো পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন। পদ্মা সেতু পারাপারে মোটরসাইকেলের জন্য সর্বনিম্ন ১০০ টাকা এবং বড় বাসের জন্য ২ হাজার ৪০০ টাকা টোল নির্ধারণ করা হয়েছে।

নতুন করে এক্সপ্রেসওয়েতে টোল নির্ধারণ করায় ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু হয়ে চলাচলের ক্ষেত্রে খরচ বাড়বে।

আরও পড়ুন:
ভাড়া কমিয়েও যাত্রী পাচ্ছে না লঞ্চ
পদ্মার জাজিরা প্রান্তে উৎসবমুখর আবহ
পদ্মা সেতু পার করে দিতে বাইকপ্রতি ১০০০ টাকা
বাইক বন্ধের পর পদ্মায় টোল কমল ৭৮ লাখ
পদ্মা সেতুতে স্পিড গান-সিসিটিভি বসানোর পর বাইক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Government warning for Malaysians

মালয়েশিয়াগামীদের জন্য সরকারের সতর্কবার্তা

মালয়েশিয়াগামীদের জন্য সরকারের সতর্কবার্তা ছবি: সংগৃহীত
পাসপোর্টসহ মূল্যবান ডকুমেন্ট অন্যের হাতে জমা না দিতে সতর্ক করা হয়েছে। দালাল বা মধ্যস্বত্বভোগীদের পরিহার করতেও বলা হয়েছে।

মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক কর্মীদের সতর্ক করেছে সরকার। কর্মী পাঠানোর বিষয়ে সরকারি ঘোষণার আগে কোনো ব্যক্তি, প্রতিষ্ঠান বা রিক্রুটমেন্ট এজেন্টের সঙ্গে লেনদেন থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অধীন জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরো (বিএমইটি) বুধবার এই সতর্কতা জারি করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর বিষয়ে মালয়েশিয়ার সঙ্গে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক অনুযায়ী বাংলাদেশি কর্মী যাওয়ার ক্ষেত্রে কর্মীর বিমান ভাড়া, লেভিসহ মালয়েশিয়ায় প্রদেয় সব খরচ কর্মী গ্রহণকারী নিয়োগকারী কোম্পানি বহন করবে।

‘প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি হিসেবে মালয়েশিয়াগামী কর্মীদের বিএমইটির ডাটাবেজে নাম নিবন্ধনের জন্য একাধিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রচার করা হয়েছে। এ নিবন্ধন বৈদেশিক কর্মসংস্থানের সহায়ক। তবে কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তা নয়।’

জেনে-বুঝে প্রশিক্ষণ নিয়ে বিদেশে যেতে কর্মীদের সতর্ক করা হয়েছে।

বিএমইটির ডাটাবেজে নিবন্ধন ব্যতীত কোনো কর্মী মালয়েশিয়ায় যেতে পারবেন না বলেও জানানো হয়েছে।

বিদেশ যাওয়ার জন্য প্রলোভন ও প্রতারণার ফাঁদে পা না দিতে সতর্ক করা হয়েছে।

পাসপোর্টসহ মূল্যবান ডকুমেন্ট অন্যের হাতে জমা না দিতে সতর্ক করা হয়েছে। দালাল বা মধ্যস্বত্বভোগীদের পরিহার করতেও বলা হয়েছে।

অনুমোদনবিহীন বিজ্ঞাপন, প্রতিষ্ঠান ও প্রতারকদের বিষয়ে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় কর্মী পাঠানোর নামে অবৈধ ও আগাম লেনদেনের সঙ্গে সম্পৃক্ত রিক্রুটিং এজেন্সি বা তার প্রতিনিধি, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বৈদেশিক কর্মসংস্থান ও অভিবাসী আইন, ২০১৩ সহ সংশ্লিষ্ট আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে।

প্রতারণা থেকে রক্ষা পেতে ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন এবং মানি রিসিট সংরক্ষণের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

মালয়েশিয়াসহ বিদেশ যাওয়া নিয়ে পরামর্শের জন্য নিকটস্থ জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিস বা কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। প্রয়োজনে www.bmet.gov.bd ভিজিট করতে অথবা ০৮০০০১০২০৩০ (টোলফ্রি) নম্বরে কল করে তথ্য ও পরামর্শ নিতে বলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
৫ লাখ কর্মী যাবে মালয়েশিয়ায়

মন্তব্য

p
উপরে