× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Two convicts were acquitted on appeal
hear-news
player
print-icon

আপিলে খালাস মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামি

আপিলে-খালাস-মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত-দুই-আসামি
সুপ্রিম কোর্ট ভবনের একাংশ। ফাইল ছবি
২০০৬ সালের ২০ অক্টোবর সন্ধ্যায় ইফতারের পর রাজশাহীর গোদাগাড়ীর ধুয়াপাড়া যৌবন গ্রামের সৌদিপ্রবাসী বজলুর রহমানের স্ত্রী মিলিয়ারা খাতুন ওরফে রোকসানা ওরফে মিলু এবং তার মেয়েশিশু পারভীন ওরফে সাবনুরকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। পরদিন মিলির বাবা রফিকুল ইসলাম মামলা করেন।

১৬ বছর আগে মা-মেয়ে খুনের মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামিকে খালাস দিয়েছে আপিল বিভাগ।

মামলার অপর এক আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ কমিয়ে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে আদালত।

দুই আসামির আপিল গ্রহণ এবং এক আসামির আপিল খারিজ করে বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীসহ তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ রায় দেয়।

২০০৬ সালের ২০ অক্টোবর সন্ধ্যায় ইফতারের পর রাজশাহীর গোদাগাড়ীর ধুয়াপাড়া যৌবন গ্রামের সৌদিপ্রবাসী বজলুর রহমানের স্ত্রী মিলিয়ারা খাতুন ওরফে রোকসানা ওরফে মিলু এবং তার মেয়েশিশু পারভীন ওরফে সাবনুরকে গলা কেটে হত্যা করা হয়। পরদিন মিলির বাবা রফিকুল ইসলাম মামলা করেন।

মামলার এজাহারে বলা হয়, মিলির মাথা গোয়ালঘরে এবং সাবনুরের মাথা টয়লেটে পাওয়া যায়।

দুই বছর পর এ মামলার বিচার শেষে ২০০৮ সালের ২৩ জুলাই রাজশাহীর দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মেসবাউদ্দৌলা রায় দেন।

রায়ে ধুয়াপাড়া যৌবন লাইনপাড়ার সোনাদ্দি ওরফে সোনারুদ্দি, ইসমাইল হোসেন বাবু, তরিকুল ইসলাম ভুতা এবং মো. মোক্তারকে (পলাতক) মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। সেই থেকে তিন আসামি কনডেম সেলে রয়েছেন।

নিয়ম অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডাদেশ অনুমোদনের জন্য ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে পাঠানো হয়। পাশাপাশি তিন আসামি হাইকোর্টে আপিল করেন।

শুনানি শেষে বিচারপতি শহিদুল ইসলাম ও বিচারপতি আবদুর রবের বেঞ্চ ২০১৪ সালের ১৩ মার্চ রায় দেয়। রায়ে আপিল খারিজ করে চার আসামির মৃত্যুদণ্ডাদেশ বহাল রাখা হয়।

রায়ে পলাতক মোক্তারের বিষয়ে বলা হয়, আত্মসমর্পণ বা গ্রেপ্তারের পর থেকে তার দণ্ড কার্যকর হবে।

এরপর কারাবন্দি তিন আসামি আপিল বিভাগে আপিল করেন, তবে পলাতক মোক্তার আপিল করেননি।

ওই আপিলগুলোর শুনানি শেষে বৃহস্পতিবার রায় দেয় আপিল বিভাগ।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ। আসামি ইসমাইলের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন এস এম শাহজাহান। সোনারুদ্দির পক্ষে ছিলেন হেলাল উদ্দিন মোল্লা। আর তরিকুলের পক্ষে ছিলেন এস এম বকস কল্লোল।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বশির আহমেদ বলেন, ‘শুধু তরিকুলের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি ছিল। তাই তার আপিল খারিজ এবং দীর্ঘদিন কনডেম সেলে থাকার বিষয়টি বিবেচনায় তার দণ্ড কমিয়ে যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে আদালত।’

আরও পড়ুন:
মাদক মামলায় রোহিঙ্গা যুবকের মৃত্যুদণ্ড
কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যা: ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড
স্ত্রী হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড
দম্পতি হত্যায় ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড
পাভেল হত্যা: একজনের মৃত্যুদণ্ড, দুইজনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Shoe garland to teacher Ronnie arrested

শিক্ষককে জুতার মালা: প্রধান আসামি রনি গ্রেপ্তার

শিক্ষককে জুতার মালা: প্রধান আসামি রনি গ্রেপ্তার

নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে জুতার মালা পরানোর ঘটনায় প্রধান আসামি রহমত উল্লাহ রনিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ শওকত কবীর বুধবার রাতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অধ্যক্ষ স্বপনকে জুতার মালা পরানোর ঘটনার ভিডিওতে কালো টিশার্ট পরা যুবকই হলেন রহমত উল্লাহ রনি।

আরও আসছে...

আরও পড়ুন:
অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা ওসির সামনেই
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যায় জিতু গ্রেপ্তার
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ
শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার
শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাবিতে আমরণ অনশন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Testimony of 5 more people against GK Shamim

জি কে শামীমের বিরুদ্ধে আরও ৫ জনের সাক্ষ্য

জি কে শামীমের বিরুদ্ধে আরও ৫ জনের সাক্ষ্য আদালত প্রাঙ্গণে জি কে শামীম। ফাইল ছবি
এই পর্যন্ত ১৯ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে এই মামলায়। পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৮ জুলাই দিন ঠিক করেছেন বিচারক।

অর্থপাচার মামলায় এসএম গোলাম কিবরিয়া (জি কে) শামীমসহ আট জনের বিরুদ্ধে আরও পাঁচ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন আদালতে।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১০ এর বিচারক মোহাম্মদ নজরুল ইসলামের আদালতে বুধবার তাদের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। এই পর্যন্ত ১৯ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়েছে এই মামলায়। পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য ১৮ জুলাই দিন ঠিক করেছেন বিচারক।

আদালতে যে পাঁচ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন তারা হলেন- বাংলাদেশ ব্যাংকের অতিরিক্ত পরিচালক মোহাম্মদ মহসিন হোসাইনী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর মডেল থানার কনস্টেবল মিনহাজুল আবেদীন, গুলশান থানার এএসআই বুলবুল হক আনাছ, কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারী থানার এএসআই নুরে আলম ও বাগেরহাট সদর মডেল থানার এএসআই তারক চন্দ্র দাস।

সাক্ষ্যগ্রহণের সময় কারাগার থেকে আসামিদের আদালতে হাজির করা হয়।

আলোচিত এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- দেলোয়ার হোসেন, মোরাদ হোসেন, সামসাদ হোসেন, আনিছুল ইসলাম, শহীদুল ইসলাম, কামাল হোসেন ও জাহিদুল ইসলাম। তারা জি কে শামীমের দেহরক্ষী হিসেবে পরিচিত।

জি কে শামীমকে ২০১৯ সালের ২০ সেপ্টেম্বর আটক করে র‌্যাব। এ সময় ১ কোটি ৮০ লাখ টাকা, ৯ হাজার ইউএস ডলার, ৭৫২ সিঙ্গাপুরের ডলার, ১৬৫ কোটি টাকার এফডিআর, অস্ত্র ও বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ উদ্ধার হয়। এ ব্যাপারে র‌্যাব বাদী হয়ে মানি লন্ডারিং, মাদক ও অস্ত্র আইনে মামলা করে।

আরও পড়ুন:
জি কে শামীমের বিরুদ্ধে তিন পুলিশের সাক্ষ্য
জি কে শামীমের বিরুদ্ধে সাক্ষ্যগ্রহণ পেছাল
জি কে শামীমের বিরুদ্ধে সারওয়ার আলমের সাক্ষ্য
আত্মসমর্পণের পর কারাগারে জি কে শামীমের মা
অ্যাম্বুলেন্সে করে আদালতে জিকে শামীমের মা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Feticide case AIG Farooqi released

ভ্রূণ হত্যা মামলা: এআইজি ফারুকীকে অব্যাহতি

ভ্রূণ হত্যা মামলা: এআইজি ফারুকীকে অব্যাহতি
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের মোহাম্মদ হানিফ গত ১৩ জুন আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। তাতে ঘটনার সত্যতা না পাওয়ার তথ্য উল্লেখ করা হয়। মঙ্গলবার আদালত প্রতিবেদনটি গ্রহণ করে মামলার আসামি মহিউদ্দিন ফারুকীকে অব্যাহতি দেয়।

ভ্রূণ হত্যার অভিযোগে করা মামলায় পুলিশ সদর দপ্তরের সাপ্লাই শাখার এআইজি (এসপি পদমর্যাদা) মোহাম্মদ মহিউদ্দিন ফারুকীকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত। বুধবার আদালত সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

আদালতের সূত্রমতে, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের মোহাম্মদ হানিফ গত ১৩ জুন আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। তাতে মামলায় উল্লেখ করা অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ার তথ্য উল্লেখ করা হয়। মঙ্গলবার আদালত প্রতিবেদনটি গ্রহণ করে মামলার আসামি মহিউদ্দিন ফারুকীকে অব্যাহতি দেয়।

এক নারী ১৫ মার্চ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, ২০১৯ সালে মহিউদ্দিন ফারুকীর সঙ্গে ওই নারীর ফেসবুকের মাধ্যমে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক হয়। তারা আগস্টে একটি রেস্টুরেন্টে দেখা করেন। মহিউদ্দিন ফারুকী ওই নারীকে জানান, তার স্ত্রীর সঙ্গে সম্পর্ক ভালো না। তাকে বিয়ে করলে তিনি স্ত্রীকে তালাক দেবেন।

ওই নারী প্রথমে তার প্রস্তাব নাকচ করেন। পরে মহিউদ্দিন ফারুকী তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়ান। ৩০ সেপ্টেম্বর মহিউদ্দিন ফারুকী ওই নারীর বাসায় যান। পরে নানা অজুহাতে তিনি ওই বাসায় যাতায়াত করতে থাকেন। এরপর ৯ অক্টোবর মহিউদ্দিন ফারুকী ওই নারীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে শারীরিক সম্পর্কে জড়ান।

এজাহারে আরও বলা হয়, ২০২০ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ওই নারীর জন্মদিনে মহিউদ্দিন ফারুকী তাকে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও দেখা করান। পরে বেশ কয়েকবার তারা শারীরিক সম্পর্কে জড়ান। সে বছরের ১৭ মার্চ ওই নারী মহিউদ্দিন ফারুকীকে তার প্রেগন্যান্সির কথা জানান।

অভিযোগে আরও বলা হয়, চিকিৎসক ওই নারীকে ভিটামিন ও আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ার পরামর্শ দিলে ১৮ মার্চ মহিউদ্দিন ফারুকী তার জন্য কিছু ওষুধ নিয়ে আসেন। সেসব ওষুধ খেয়ে রাতে তার পেটে ব্যথা হয়। সকালেও সেসব ওষুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করেন মহিউদ্দিন ফারুকী।

পরে মহিউদ্দিন ফারুকী স্বীকার করেন ওষুধগুলো গর্ভপাতের। ২০২১ সালের ১৬ এপ্রিল ওই নারী আবারও গর্ভবতী হন। ২৮ এপ্রিল মহিউদ্দিন ফারুকীকে খবর দিলে তিনি ক্ষিপ্ত হন। ওই নারী তাকে বিয়ে করতে চাপ দিলে ৬ জুন তারা বিয়ে করেন।

তবে বিভিন্ন বিষয়ে দুজনের মধ্যে সম্পর্ক ভালো না থাকায় ভ্রূণ হত্যার অভিযোগে ওই নারী মহিউদ্দিন ফারুকীর বিরুদ্ধে মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
যবিপ্রবি প্রকৌশলীকে ‘মারধর’, মাইক্রোবায়োলজির চেয়ারম্যানের নামে মামলা
‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার’ গৃহবধূর মৃত্যু: আটক ৪
নাটোরে আইসিটি মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
আ.লীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা
আসামির বিরুদ্ধে হত্যা-ধর্ষণের হুমকির অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Destinys 4 officers are in jail

ডেসটিনির ৪ কর্মকর্তা কারাগারে

ডেসটিনির ৪ কর্মকর্তা কারাগারে প্রতীকী ছবি
কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন- ডেসটিনি গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর সাকিবুজ্জামান খান (অব.), সহযোগী প্রতিষ্ঠান বেস্ট এভিয়েশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মোল্লা আল আমিন, সুনীল বরণ কর্মকার ও হেড অব ফাইন্যান্স কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিম।

আত্মসমর্পণের পর জামিন পাননি ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির সাজা পাওয়া চার কর্মকর্তা। আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে।

গ্রাহকদের ৪ হাজার কোটি টাকা আত্মসাতের মামলায় আদালত ডেসটিনি গ্রুপের কর্মকর্তাদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজার রায় দেয়। তখন চার আসামি পলাতক থাকায় তাদের নামে পরোয়ানা জারি হয়।

বুধবার ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলমের উপস্থিতিতে আসামিরা আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করেন। শুনানি শেষে আদালত তাদের জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়।

কারাগারে পাঠানো আসামিরা হলেন- ডেসটিনি গ্রুপের ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর সাকিবুজ্জামান খান (অব.), সহযোগী প্রতিষ্ঠান বেস্ট এভিয়েশনের অ্যাসিস্ট্যান্ট ম্যানেজার মোল্লা আল আমিন, সুনীল বরণ কর্মকার ও হেড অব ফাইন্যান্স কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিম।

এ মামলায় গত ১২ মে রায় দেন ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম।

রায়ে অন্য আসামিদের পাশাপাশি মেজর সাকিবুজ্জামান খানের (অব.) পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ১ কোটি টাকা জরিমানা হয়। মোল্লা আল আমিনের চার বছরের কারাদণ্ড ও ১০ লাখ টাকা জরিমানা, সুনীল বরণ কর্মকারের ৮ বছর কারাদণ্ড ও ৫ কোটি টাকা জরিমানা এবং কাজী মোহাম্মদ ফজলুর করিমের পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দেয় আদালত।

আরও পড়ুন:
ডেসটিনির এমডি রফিকুল আমীনের স্ত্রী কারাগারে
ডেসটিনির হারুনসহ ৪৫ জনের সাজা বাড়াতে আবেদন
অর্থপাচার: ডেসটিনির এমডি রফিকুলের ১২ বছরের কারাদণ্ড
ডেসটিনির অর্থ আত্মসাৎ ও পাচার মামলার রায় ১২ মে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death of a housewife victim of organized rape Detention 4

‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার’ গৃহবধূর মৃত্যু: আটক ৪

‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার’ গৃহবধূর মৃত্যু: আটক ৪
ওসি জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হবে। ভোরে জারুইতলা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা থেকে অভিযুক্ত স্বামীসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

কিশোরগঞ্জের নিকলীতে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণের শিকার’ গৃহবধূ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ ঘটনায় তার স্বামীসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে।

কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মঙ্গলবার রাত ২টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

নিকলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ মনসুর আলী আরিফ বুধবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা হবে। ভোরে জারুইতলা ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা থেকে অভিযুক্ত স্বামীসহ চারজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

হাসপাতালে গৃহবধূর সঙ্গে ছিলেন তারা মামা মো. জাহাঙ্গীর। তিনি নিউজবাংলাকে জানান, মারা যাওয়ার আগে ঘটনার বর্ণনা দেয়ার পাশাপাশি জড়িত কয়েকজনের নাম তাকে জানিয়ে গেছেন তার ভাগনি।

কী ঘটেছিল এই প্রশ্নের উত্তরে গৃহবধূর বরাতে তিনি বলেন, বাবার বাড়ি উত্তর রসুলপুর গ্রাম থেকে সোমবার রাত ৮টার দিকে শাহপুর গ্রামের শ্বশুরবাড়ির উদ্দেশে রওনা হয় তার ভাগনি। শ্বশুরবাড়ির কাছাকাছি শাহপুর মোড় থেকে তাকে তুলে নিয়ে একটি পতিত জমিতে ছয়-সাতজন তাকে ধর্ষণ করে।

পরদিন সকালে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। পরে সেখান থেকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। রাত ২টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সজীব ঘোষ নিউজবাংলাকে জানান, গুরুতর অবস্থায় ওই গৃহবধূকে হাসপাতালে আনা হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাকে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়। প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে মনে হয়েছে, তিনি ধর্ষণের শিকার হয়েছেন।

রোগীর মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে জানতে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) মাকসুদুর রহমানের সঙ্গে প্রথমে যোগাযোগ করেন নিউজবাংলার প্রতিবেদক। এ সময় তিনি তথ্য দিতে অপারাগত প্রকাশ করেন। জানান, তিনি কাউকে সরাসরি না চিনলে ফোনে তথ্য দেন না। তিনি অফিস টাইম শেষ করে বের হয়ে গেছেন।

এরপর অফিস টাইমে কেন এলেন না এই প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, ‘এখন কোনো প্রয়োজন হলে আপনার আইডি কার্ডসহ আগামীকাল দেখা করতে হবে।’

তবে কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের পরিচালক হেলাল উদ্দীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভিকটিম সেক্সচুয়াল অ্যাসল্ট হয়েছে। ময়নাতদন্ত এবং ভিসেরা রিপোর্টের পর বিস্তারিত বলা যাবে।’

আরও পড়ুন:
আ. লীগ নেতার বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টা মামলা
ব্যবসায়ী হত্যায় দুজনের যাবজ্জীবন
কাঠমিস্ত্রি হত্যা মামলায় সাতজনের যাবজ্জীবন
ফেনসিডিল নিয়ে আহত দুই যুবকের নামে মামলা
কলেজছাত্র হত্যা মামলায় দুজনের যাবজ্জীবন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Independent candidates agent beaten BCL president arrested

স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে ‘মারধর’, ছাত্রলীগ সভাপতি আটক

স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে ‘মারধর’, ছাত্রলীগ সভাপতি আটক বেতাগী সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি আবুল বাশার। ছবি: নিউজবাংলা
বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুহৃদ সালেহিন বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে মারধর ও উচ্ছৃঙ্খল আচরণের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ছাত্রলীগ সভাপতি বাশারকে আটক করা হয়েছে।’

বরগুনার বেতাগীতে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে মারধরের অভিযোগে ছাত্রলীগ সভাপতিকে আটক করেছে পুলিশ।

বেতাগী উপজেলার কাজিরাবাদ ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডের মধ্য বকুলতলী কেন্দ্র থেকে বুধবার সকালে আবুল বাশারকে আটক করা হয়। বাশার সদর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি।

বেতাগী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম হাওলাদার জানান, স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী কামাল হোসেনের এজেন্টকে মারধরের অভিযোগে একজনকে আটক করা হয়েছে। তিনি এখন থানা হাজতে আছেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সুহৃদ সালেহিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্বতন্ত্র প্রার্থীর এজেন্টকে মারধর ও উচ্ছৃঙ্খল আচরণের জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ছাত্রলীগ সভাপতি বাশারকে আটক করা হয়েছে।’

গত ৯ জানুয়ারি বার্ধক্যজনিত কারণে কাজিরাবাদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেনের মৃত্যু হয়। এরপর পদটি শূন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।

১৫ জুন শূন্য পদে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও পরিবেশ অনুকূলে না থাকার কারণে দুই দিন আগে তা স্থগিত করে কমিশন।

এরপর বুধবার সকাল ৮টা থেকে ৯টি কেন্দ্রে ভোট শুরু হয়েছে। চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী সালাউদ্দিন মাহমুদ সুমন, মোটরসাইকেল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল হোসেন এবং আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী বারেক মোল্লা।

কামাল হোসেনের অভিযোগ, ‘সকাল থেকে নৌকা মার্কার কর্মীরা আমার লোকদের হয়রানি করছে। তারা আমার ভোটারদের কেন্দ্রে আসতে দিচ্ছে না। ভোটাররা যদি ঠিকমতো ভোট দিতে পারে তাহলে আমি বিপুল ভোটে জয়ী হব।’

আরও পড়ুন:
মডেল আসিফ ধরাশায়ী ভোটে
দিগুণ ভোটে নৌকাকে হারিয়ে চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা
মায়ের কোলে শিশু গুলিবিদ্ধ
পাতিবিলায় নিহত মেম্বারের স্ত্রী লিপির জয়
এমপির ইউনিয়নে নৌকা ডুবিয়ে হাতপাখার জয়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death hunger strike in DU demanding arrest of teacher killer

শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাবিতে আমরণ অনশন

শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাবিতে আমরণ অনশন শিক্ষক উৎপল হত্যায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজু ভাস্কর্যের সামনে শিক্ষার্থীদের অনশন। ছবি: নিউজবাংলা
অনশনরত পাঁচ শিক্ষার্থীর একজন তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘শিক্ষকরা জাতির মেরুদণ্ড। স্টাম্পের আঘাতে তাদেরই মেরুদণ্ড ভেঙে দেয়া হচ্ছে। যে প্রজন্ম শিক্ষককে পিটিয়ে মেরে ফেলতে পারে, সেই প্রজন্মের লাগাম এখনই টেনে ধরতে হবে। উৎপল স্যারের হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত অনশন চলবে।’

ঢাকার সাভারে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত ছাত্রকে গ্রেপ্তারের দাবিতে আমরণ অনশনে বসেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচ শিক্ষার্থী।

বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে ক্যাম্পাসে রাজু ভাস্কর্যের সামনে এই পাঁচ শিক্ষার্থী অনশনে বসেন। পরে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী সংহতি জানিয়ে তাদের পাশে কিছুক্ষণ অবস্থান করেন।

অনশনে বসা শিক্ষার্থীরা হলেন- তরিকুল ইসলাম, চৌধুরী শামীম আফফান, মোস্তফা কামাল রনি, মেহেদী হাসান ও নাঈম পারভেজ।

অনশনে বসা পাঁচজনই বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্যসেন হলের শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে তরিকুল, আফফান ও রনি ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষ এবং নাঈম ও মেহেদী ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

শিক্ষক উৎপল কুমারের হত্যাকারী গ্রেপ্তার না হওয়া পর্যন্ত তারা অনশন চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

শিক্ষার্থীরা অনশনস্থলের পেছনে একটা ব্যানারও স্থাপন করেছেন। তাতে লেখা- ‘দেশ গড়ার কারিগর উৎপল কুমার স্যারের হত্যাকারীকে গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত আমরণ অনশন।’

ব্যানারের এক পাশে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারের ছবি এবং অন্য পাশে খুনের দায়ে অভিযুক্ত ছাত্রের ছবি সংযুক্ত করা হয়েছে। তাদের হাতে ধরা রয়েছে বিভিন্ন লেখা সংবলিত প্লাকার্ডও।

অনশনরত তরিকুল বলেন, ‘শিক্ষকরা জাতির মেরুদণ্ড। স্টাম্পের আঘাতে তাদেরই মেরুদণ্ড ভেঙে দেয়া হচ্ছে। যে প্রজন্ম শিক্ষককে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে মেরে ফেলতে পারে, সেই প্রজন্মের লাগাম এখনই টেনে ধরতে হবে। উৎপল স্যারের হত্যাকারী শিক্ষার্থীকে গ্রেপ্তার না করা পর্যন্ত আমাদের অনশন চলবে।’

আরও পড়ুন:
ছেলের প্রেমে মাকে পুড়িয়ে হত্যা, দম্পতি কারাগারে
শিক্ষক হত্যায় জিতুর বাবা রিমান্ডে
ছাগলের জন্য বড় ভাইকে হত্যায় গ্রেপ্তার ছোট
হত্যা মামলার আসামিদের বিচারের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ
শিক্ষক হত্যা: আলামত জব্দে দেরি, আসামির বয়সও ভুল

মন্তব্য

p
উপরে