× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Why part of BNP wants to lose Sakku
hear-news
player
print-icon

কেন সাক্কুকে হারাতে চায় বিএনপির একাংশ

কেন-সাক্কুকে-হারাতে-চায়-বিএনপির-একাংশ
বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কুকে (বামে) ঠেকাতে প্রস্তুত স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা নিজাম উদ্দিন কায়সার। ছবি: সংগৃহীত
বিএনপি ভোট বর্জন করার পরও দলের প্রধান অংশ সাক্কুর পেছনে। বাকি একাংশ আছে আরেক প্রার্থী নিজামউদ্দিন কায়সারের পক্ষে, যিনি স্বেচ্ছাসেবক দলের পদ ছেড়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়িয়েছেন। দৃশ্যত বলছেন জয়ের কথা, কিন্তু বলাবলি হচ্ছে, সাক্কুর পরাজয় নিশ্চিত করাই তার প্রধান লক্ষ্য।

বিএনপি আনুষ্ঠানিকভাবে ভোটে নেই। তবে পরোক্ষভাবে সেখানে লড়াই চলছে আওয়ামী লীগ-বিএনপিরই। এই সমীকরণে আবার একদিক থেকে ক্ষমতাসীন দল সুবিধাজনক অবস্থানে এ কারণে যে তাদের প্রতিদ্বন্দ্বীদের মধ্যে বিএনপিসংশ্লিষ্ট আছেন দুজন।

কুমিল্লা শহর যখন ছিল পৌরসভা, তখনকার ভোটেও পারেনি আওয়ামী লীগ। সিটি করপোরেশন হওয়ার পর প্রথম ভোট ছিল দলীয় প্রতীক ছাড়া, তাতে হেরেছেন দল-সমর্থিত প্রার্থী, দ্বিতীয় ভোট ছিল দলীয় প্রতীকে, তাতেও আসে পরাজয়।

টানা তিনবার জিতেছেন বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কু। এবার তার সামনে সিটি করপোরেশনে চতুর্থ জয়ের চ্যালেঞ্জ।

২০১২ সালের পর ২০১৭ সালে প্রার্থী পাল্টে ভোটের ব্যবধান ২৪ হাজার কমিয়ে ফেলতে পারে আওয়ামী লীগ। এবার বাজিমাতের আবার নতুন মুখ দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল।

বিএনপি ভোট বর্জন করায় মনিরুল হক সাক্কুর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়াইয়ের বিকল্প ছিল না। তিনি করেছেনও তা। দল তাকে আজীবনের জন্য বহিষ্কার করেছে, কিন্তু দলের স্থানীয় নেতাকর্মী-সমর্থকদের বেশির ভাগের সমর্থন দৃশ্যত তার দিকেই।

কেন সাক্কুকে হারাতে চায় বিএনপির একাংশ
নির্বাচনি প্রচারে বিএনপি নেতা মনিরুল হক সাক্কু। ছবি: নিউজবাংলা

এটা শতভাগ নয়, এটিই সাক্কুর জন্য এবার বড় চ্যালেঞ্জ। বাকি একাংশ আছে আরেক প্রার্থী নিজামউদ্দিন কায়সারের পক্ষে, যিনি স্বেচ্ছাসেবক দলের পদ ছেড়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ভোটে দাঁড়িয়েছেন। দৃশ্যত বলছেন জয়ের কথা, কিন্তু বলাবলি হচ্ছে, সাক্কুর পরাজয় নিশ্চিত করাই তার প্রধান লক্ষ্য।

কুমিল্লা শহরকে নিয়ে যে সংসদীয় আসন, সেটি ১৯৭৩ সালের পর প্রথমবারের মতো আওয়ামী লীগের দখলে আসে ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে। কিন্তু শহরের দখল এখনও নিতে পারেনি তারা। বিএনপিতে বিভেদের সুবিধা নিতে চায় তারা।

বিভেদ আওয়ামী লীগে নেই এমন নয়, তবে এবার অন্য দুবারের তুলনায় বেশি অপ্রকাশ্য। দল মনোনয়ন দিয়েছে সদর আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের অনুসারী আরফানুল হক রিফাতকে। বাহারের দ্বন্দ্ব ছিল অন্য যে বলয়ের সঙ্গে তার নেতা আফজল খান গত হয়েছেন গত বছর। এর পর থেকে আওয়ামী লীগ মূলত একই বৃত্তে।

১৫ জুনের এই ভোটে সাক্কু, রিফাত ও কায়সার- এই তিনটি নামই আলোচিত বেশি।

অন্যান্য নির্বাচনে আলোচনায় থাকে আওয়ামী লীগের দুই বলয়ের মধ্যে সম্পর্ক কী হবে, এক বলয় অন্য বলয়কে হারাতে কাজ করবে নাকি দলের স্বার্থে এক হবে।

এই আলোচনা এখন বিএনপিতে বেশি। সাক্কু ও তার বিরোধী বলয়ের ভূমিকা কী হবে, সেটিই জয়-পরাজয়ের নিয়ামক হয়ে উঠবে।

কেন সাক্কুকে হারাতে চায় বিএনপির একাংশ
নির্বাচনি প্রচারে নিজামউদ্দিন কায়সার। ছবি: নিউজবাংলা

কুমিল্লা মহানগরে বিএনপি দৃশ্যত দুই ভাগে বিভক্ত। এক অংশের নেতৃত্ব দেন সাক্কু, আর তার প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক সংসদ সদস্য আমিনুর রশীদ ইয়াসিন। এই ইয়াসিনের শ্যালক হলেন কায়সার।

সাক্কু ও ইয়াসিনের বিরোধ কুমিল্লার মানুষজনের কাছে খুবই পরিচিত ইস্যু। দুই নেতার দ্বন্দ্বের কারণে দলীয় সভা আলাদা স্থানে হয়ে আসছে সেখানে।

কেন্দ্রীয়ভাবে কোনো কর্মসূচির ডাক দেয়া হলে সাক্কুর অনুসারীরা দক্ষিণ জেলা বিএনপি অফিসে অবস্থা নেন। অন্যদিকে ইয়াসিন সমর্থকরা একত্রিত হন ধর্মসাগর পারে তার ব্যক্তিগত কার্যালয়ে।

কায়সারের পাশে ইয়াসিন সমর্থকরা। তিনি লড়ছেন ঘোড়া প্রতীকে। তার মার্কায় যত ভোট পড়বে, সেটি নিঃসন্দেহে কাটা পড়বে সাক্কুর ঘড়ি প্রতীক থেকে।

ভোটের প্রচারে নৌকার রিফাত যেভাবে সাক্কুর বিরুদ্ধে ব্যর্থতা ও দুর্নীতির অভিযোগ তুলছেন, একই দলের নেতা হয়ে কায়সারও তাই করছেন। দুর্নীতি ও লুটপাটের বিরুদ্ধে তার বক্তব্য নিয়েও সাধারণ মানুষের মধ্যে আলোচনা আছে।

কায়সার কেন প্রার্থী

এই প্রশ্নে মেয়র প্রার্থী অভিযোগ উগরে দিলেন সাক্কুর বিরুদ্ধে। তিনি বলেন, ‘গত ১০ বছরে কুমিল্লা মহানগরের একাংশ ও সদর আসনের বহু নেতা-কর্মীর নামে অন্তত আড়াই শ মামলা হয়েছে। এই ১০-১২ বছরে মনিরুল হক সাক্কু ও তার নেতা-কর্মীদের কোনো মামলা হয়নি। উল্টো তিনি মেয়র থাকাকালীন আমাদের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের লোকজন দিয়ে মামলা করিয়েছেন।

‘তার নেতা-কর্মী জেলে যাননি কেউ। মনিরুল হক সাক্কু এখন আওয়ামী লীগের লোক। তাই নেতা-কর্মীদের বাঁচাতে আমি নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছি।’

তিনি বলেন, ‘মনিরুল হক সাক্কু, আরফানুল হক রিফাত ও সদর আসনের সংসদ সদস্য এরা একই। তারা যে বলয় তৈরি করে নগরবাসীকে অত্যাচার-নির্যাতন করছে, লুটপাট করছে, কুমিল্লা নগরীতে একটি অকার্যকর নগরীতে পরিণত করেছে, তাদের এই বলয় ভেঙে কুমিল্লা নগরীতে একটি বাসযোগ্য নগরী হিসেবে গড়ে তুলতেই আমি মেয়র পদে নির্বাচন করছি।

‘সব মিলিয়ে আমি আমার দলের নেতা-কর্মী এবং এই নগরবাসী চায় না মনিরুল হক সাক্কু আবার মেয়র হোক।’

কী বলছেন সাক্কু

পৌরসভা থাকাকালে একবার আর সিটি করপোরেশন হওয়ার পর দুবার আওয়ামী লীগের সঙ্গে লড়াই করে সহজেই জয়ী হয়েছেন সাক্কু। প্রতিবার তার পেছনে দল ছিল এককাট্টা। এবার নিজ দলের একাংশের বিরোধিতা নিয়ে তিনি কি চিন্তিত?

তবে সাক্কু দাবি করেছেন, কায়সারকে তিনি গুরুত্ব দিচ্ছেন না। তিনি বলেন, ‘কায়সার আমার ছোডু ভাই। তার শখ হইছে নির্বাচন করুক। তবে হেতের শখটা অইন্য জায়গায়। রাজনৈতিকভাবে আমার লগে না পাইরা এহন আইছে মেয়র ইলেকশন করত। আমার রাজনৈতিক অবস্থানডারে ভাঙতে আইছে। আমি হারলে আওয়ামী লীগের থাইক্কা লাভ বেশি তার। সে তো জানে না এই টাউনের লোকজন আমারে পছন্দ করে। ১৫ তারিখ বিজয়ের মালা আমার গলায় থাকব।’

মেয়র পদে অবশ্য আরও দুজন প্রার্থী আছেন। এরা হলেন ইসলামী আন্দোলনের হাতপাখা প্রতীকের রাশেদুল ইসলাম এবং সত্যিকার অর্থে দল নিরপেক্ষ কামরুল আহসান বাবুল, যার প্রতীক হরিণ।

অবশ্য নির্বাচনে এই ‍দুই প্রার্থী নিয়ে ভোটারদের মধ্যে তেমন কোনো আলোচনা নেই।

আরও পড়ুন:
এমপি বাহারকে কুমিল্লা ছাড়ার নির্দেশ ইসির
কুমিল্লা সিটিতে এই প্রথম নিজ পরিচয়ে ভোট দেবেন ২ ট্রান্সজেন্ডার
কুমিল্লা সিটিতে ৮৫ শতাংশ কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ
বেগম পাড়ায় বাড়ি ইস্যুতে কুমিল্লায় উত্তাপ
বৈধ টাকা থাকলে চান্দের দেশে বাড়ি বানানো যায়: সাক্কু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The scoundrels made by Chhatra League are insulting the teachers

‘ছাত্রলীগের বানানো বখাটেরাই শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করছে’

‘ছাত্রলীগের বানানো বখাটেরাই শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করছে’ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাষ্কর্যে বুধবার বিকেলে মানববন্ধন করে ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। ছবি: নিউজবাংলা
‘ছাত্রলীগই কোটা সংস্কার আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করেছে। এই ছাত্রলীগই কুয়েটে একজন শিক্ষককে মানসিক নির্যাতন করে মৃত্যুর দিকেও ঠেলে দিয়েছে‍।’

সারা দেশে ছাত্রলীগ কিশোর-তরুণদের পড়াশোনা থেকে বিচ্যুত করে বখাটে বানাচ্ছে‍ বলে অভিযোগ করেছেন ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সহসভাপতি আসিফ মাহমুদ‍।

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের বানানো এই বখাটে শিক্ষার্থীরাই শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করছে, প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে‍।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে বুধবার বিকেলে মানববন্ধনে তিনি ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ করেন।

নড়াইলে পুলিশের উপস্থিতিতে কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসকে হেনস্তার প্রতিবাদ এবং সাভারে কলেজশিক্ষক উৎপল কুমার বিশ্বাসের হত্যাকারীর বিচারের দাবিতে এ মানববন্ধন করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা।

মানববন্ধনে আসিফ বলেন, ‘ছাত্রলীগই কোটা সংস্কার আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের লাঞ্ছিত করেছে। এই ছাত্রলীগই কুয়েটে একজন শিক্ষককে মানসিক নির্যাতন করে মৃত্যুর দিকেও ঠেলে দিয়েছে‍।

‘আমি নিশ্চিত, সাভারের শিক্ষক হত্যার ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত হলে, সেখানেও ক্ষমতাসীন দল কিংবা তাদের ছাত্রসংগঠনের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে‍।’

কলেজশিক্ষক উৎপল কুমারের হত্যার বিচারের দাবিতে আমরণ অনশনরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সংহতি জানান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র অধিকার পরিষদের সভাপতি আখতার হোসেন। বলেন, ‘আজ দেশে সংখ্যাগুরু কিংবা সংখ্যালঘু, হিন্দু কিংবা মুসলিম কেউই নিরাপদে নেই‍।

‘বাংলাদেশে কেবল ভালো আছে ক্ষমতার উচ্ছিষ্টভোগীরা‍। বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে হলে সংখ্যাগুরু-সংখ্যালঘু বিভাজন করা যাবে না‍।’

আখতার বলেন, ‘একজন হিন্দু ভাই নিপীড়িত হলে আমি একজন মুসলিম ভাই হিসেবে তার প্রতিবাদ জানাব‍। একজন মুসলিম ভাই নিপীড়িত হলে আমার একজন হিন্দু ভাই তার প্রতিবাদ জানাবে। আর এভাবেই সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বাংলাদেশ গড়ে উঠবে‍।’

সংগঠনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক আকরাম হোসেন বলেন, ‘নড়াইলে ক্লাস থেকে তুলে নিয়ে একজন শিক্ষককে হেনস্তা, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস থেকে তুলে নিয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদের একজন কর্মীকে ছাত্রলীগের হামলা সবই এক সূত্রে গাঁথা‍।

‘ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের ভোটাধিকার ও মৌলিক মানবাধিকার হরণ করে দেশের মানুষকে বিভাজিত করে সাম্প্রদায়িক সংঘাতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে‍।’

আরও পড়ুন:
ফাল্গুনীকে মারধর: ছাত্রলীগের পাঁচজনের বিচার শুরু
পুলিশ পেটানোর অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার
সীতাকুণ্ডের ঘটনায় জড়িতদের বিচার দাবির মিছিলে হামলার অভিযোগ
চবি ছাত্রলীগের ২ নেতাকে ‘মারধর’: আটক ২
‘জমি দখল করে’ যুবলীগ-ছাত্রলীগ নেতার মাছের ঘের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Seeing Raushan in Parliament the Prime Minister ran away

সংসদে রওশনকে দেখে ছুটে গেলেন প্রধানমন্ত্রী

সংসদে রওশনকে দেখে ছুটে গেলেন প্রধানমন্ত্রী সংসদে রওশন এরশাদের শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ থাকা বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদকে সংসদে পেয়ে তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বাজেট অধিবেশন চলাকালীন বুধবার তিনি রওশন এরশাদের খোঁজ নেন।

বিকেল ৫টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংসদ অধিবেশনে প্রবেশ করেন। অধিবেশনে ঢুকে রওশন এরশাদকে দেখতে পান তিনি। নিজের সিটে গিয়ে বসেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর যান বিরোধীদলীয় নেতার কাছে। তার কুশলাদি জিজ্ঞেস করেন, শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন।

জাতীয় পার্টির প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদ গত বছরের ৫ নভেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ডে বামরুনগ্রাদ হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে চিকিৎসা শেষে সাত মাস পর সোমবার দেশে ফেরেন তিনি।

এর আগে ফুসফুসের জটিলতায় আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) টানা ৮৪ দিন ভর্তি ছিলেন বিরোধীদলীয় নেতা।

দুই নেতার কথোপকথনের সময় প্রধানমন্ত্রীর পাশে ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী ও জাতীয় সংসদের প্রধান হুইপ নূর ই আলম।

রওশন এরশাদ তার জন্য নির্ধারিত আসনে বসে কথা বলেন।

পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাজেটের ওপর বক্তব্য দেয়ার সময় সংসদ অধিবেশনে যোগ দেয়ার জন্য বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদকে ধন্যবাদ জানান। এ সময় তিনি বলেন, ‘শারীরিক অসুস্থতা নিয়েও বিরোধীদলীয় নেতা সংসদে যোগ দেয়ায় ধন্যবাদ জানাচ্ছি। শুধু যোগদানই নয়, বাজেট আলোচনায়ও অংশ নিয়েছেন।’

আরও পড়ুন:
ষড়যন্ত্রের কারণে পদ্মা সেতু হতে ২ বছর বিলম্ব: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Limestone in the face of critics of the construction of the Padma Bridge Raushan

পদ্মা সেতু নির্মাণে সমালোচকদের মুখে চুনকালি: রওশন

পদ্মা সেতু নির্মাণে সমালোচকদের মুখে চুনকালি: রওশন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ। ফাইল ছবি
‘প্রধানমন্ত্রী নিজের অর্থায়নে পদ্মা সেতু করার ঘোষণা দিলে বিদ্রুপ করেছেন অনেকে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দৃঢ়তা, সাহস, বিচক্ষণতা আর দূরদর্শীতা দিয়ে নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন। চুনকালি পড়েছে সমালোচকদের মুখে।’

বিশ্বব্যাংকসহ দাতা সংস্থাগুলো পদ্মা সেতুর অর্থায়ন থেকে সরে যাওয়ায় অনেকে অনেক কথা বলেছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ। পদ্মা সেতু হবে না বলেও অনেকে মন্তব্য করেছিলেন বলে জানান তিনি।

জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় নিয়ে বুধবার বিরোধীদলীয় নেতা এসব কথা বলেন।

বাজেট অধিবেশনে তিনি আজকেই প্রথমবারের মতো যোগ দেন। গত বছরের ৫ নভেম্বর উন্নত চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ড যান তিনি। চিকিৎসা শেষে গত সোমবার ৭ মাস পর দেশে ফেরেন তিনি।

রওশন এরশাদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নিজের অর্থায়নে পদ্মা সেতু করার ঘোষণা দিলে বিদ্রুপ করেছেন অনেকে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দৃঢ়তা, সাহস, বিচক্ষণতা আর দূরদর্শীতা দিয়ে নিজস্ব অর্থায়নেই পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছেন। চুনকালি পড়েছে সমালোচকদের মুখে।’

বিরোধীদলীয় নেতা পদ্মা সেতু নির্মাণ করায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। বলেন, ‘দেশের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু আজ বাস্তবে রূপ নিয়েছে। পদ্মা সেতু শুধু একটি অবকাঠামো নয়, এটি দেশের সক্ষমতা ও আত্মমর্যাদার প্রতীক।

‘বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশে, এত সমস্যা মোকাবিলা করে নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ সত্যিই প্রশংসার দাবি রাখে।’

এই সেতু দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জন্য অর্থনৈতিক লাইফলাইনরূপে কাজ করবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বাণিজ্য, আঞ্চলিক বাণিজ্য, দক্ষিণ এশিয়ার সংযোগ, শিল্পাঞ্চল গড়ে ওঠা, কৃষি সম্প্রসারণ অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিসহ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখবে স্বপ্নের পদ্মা সেতু।’

প্রস্তাবিত বাজেট বাস্তবায়নকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করেন দেশের সাবেক এই ফাস্ট লেডি। তিনি বলেন, ‘আমদানিজনিত মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, তেল, গ্যাস ও সারের মূল্যবৃদ্ধিজনিত বর্ধিত ভর্তুকির জন্য অর্থের সংস্থান, বেসরকারি বিনিয়োগ অব্যাহত রেখে কর্মসৃজন, আমদানি সহনীয় পর্যায়ে রেখে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ স্থিতিশীল রাখা, ব্যাংক ঋণের সুদের হার বর্তমান হারে রাখা, করের আওতা বৃদ্ধি করে রাজস্বের পরিমাণ বাড়ানো ও বাজেট ঘাটতি কমিয়ে আনা এ চ্যালেঞ্জগুলোর অন্যতম।’

চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সংশ্লিষ্ট খাতগুলোতে বরাদ্দ বাড়ানোর পাশাপাশি উৎপাদন বাড়িয়ে আমদানি কমানোর কৌশল নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

জাতীয় পার্টির সর্বোচ্চ এ নীতি নির্ধারক বলেন, ‘দেশের উন্নয়নের জন্য টেকসই গণতন্ত্রের প্রয়োজন। সব দলের অংশগ্রহণে আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, ও সুস্থ প্রতিযোগিতামূলক হবে। এটাই গণতন্ত্রের মূলনীতি। আমাদের সবাইকে দেশপ্রেমে উজ্জীবিত হয়ে দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করা প্রয়োজন।’

আরও পড়ুন:
এক্সপ্রেসওয়েতে বাইকের টোল ৩০, কার ১৪০
পদ্মা সেতুর নাট বল্টু খোলা বাইজীদ ‘খালেদার অনুসারী’: নৌ প্রতিমন্ত্রী
পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীদের বিচারের পক্ষে প্রাণিসম্পদমন্ত্রী
কোথা থেকে, কীভাবে মেটানো হলো সেতুর খরচ
পদ্মা সেতুর টাকাতেই উচ্চক্ষমতার বিদ্যুৎ সঞ্চালনের পিলার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rafiqul expelled from South Korea A League

দক্ষিণ কোরিয়া আ.লীগের রফিকুল বহিষ্কার

দক্ষিণ কোরিয়া আ.লীগের রফিকুল বহিষ্কার দক্ষিণ কোরিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম ভুট্টোকে বহিষ্কার করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে না জানিয়ে নিয়ম বহির্ভূতভাবে দুই জন সদস্য নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করেন। সেই অবৈধ কমিটির নামে ব্যানার টানিয়ে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ও পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে সভা করেন।

দক্ষিণ কোরিয়া শাখা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রফিকুল ইসলাম ভুট্টোকে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিষ্কার করা হয়েছে।

দেশটির রাজধানী সিউলে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত দক্ষিণ কোরিয়া আওয়ামী লীগের জরুরি সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

দক্ষিণ কোরিয়া শাখা আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল মতিন ও সাধারণ সম্পাদক শেখ শহিদুল ইসলাম হাছান স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে না জানিয়ে নিয়ম বহির্ভূতভাবে দুই জন সদস্য নিয়ে নতুন কমিটি গঠন করেন। সেই অবৈধ কমিটির নামে ব্যানার টানিয়ে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ও পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে সভা করেন। সেই আলোচনা সভায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বাদ দিয়ে চিহ্নিত স্বাধীনতাবিরোধীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়।

এসব কারণে রফিকুলকে আওয়ামী লীগের দক্ষিণ কোরিয়া শাখা থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে বিজ্ঞতিতে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:
ব্যবসা সহজীকরণে দক্ষিণ কোরিয়ার সহায়তা চায় বাংলাদেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Livestock Minister in favor of trial of opponents of Padma Bridge

পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীদের বিচারের পক্ষে প্রাণিসম্পদমন্ত্রী

পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীদের বিচারের পক্ষে প্রাণিসম্পদমন্ত্রী প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। ফাইল ছবি
প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যারা দেশের উন্নয়নের বিরোধিতা করেছে অথবা অসত্য তথ্য সরবরাহ করেছে, বাংলাদেশের দণ্ডবিধির প্রচলিত আইন অনুযায়ী তারা অপরাধী।’

পদ্মা সেতু প্রকল্পে যারা ষড়যন্ত্র কিংবা বিরোধিতা করেছে, তাদের আইনের আওতায় আনার পক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

মন্ত্রী বলেন, ‘দেশের উন্নয়নে যারা প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে বিরোধিতা করেছে। ড. ইউনূস হোক আর তার সাঙ্গপাঙ্গ হোক। তাদের বিচার করা ছাড়া কোনো বিকল্প পথ নেই।’

রাজধানীর সিরডাপে বুধবার এক গোলটেবিল আলোচনায় মন্ত্রী এ কথা বলেন।

‘পদ্মা সেতু: সম্প্রীতির পথে সাফল্যের অগ্রযাত্রা’ শীর্ষক ওই গোলটেবিল আলোচনার আয়োজন করে সম্প্রীতির বাংলাদেশ।

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে যারা দেশের উন্নয়নের বিরোধিতা করেছে অথবা অসত্য তথ্য সরবরাহ করেছে, বাংলাদেশের দণ্ডবিধির প্রচলিত আইন অনুযায়ী তারা অপরাধী।’

‘আজকে তাদের ছেড়ে দিলে অনেকে মনে করবে এসব করলে তো কিছুই হয় না। আমি একজন আইন পেশার মানুষ হিসেবে মনে করি তারা দেশের প্রচলিত আইন, দণ্ডবিধি, বিশেষ ক্ষমতা আইনে তারা অপরাধী।’

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন আমার তাদের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ নেই, এটি তার হৃদয়ের বিশালতা।

মন্ত্রী বলেন, ‘এখনও যারা মিথ্যাচার করছেন তাদের আইনের আওতায় নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ দরকার।’

‘যারা উন্নয়নের বিরুদ্ধে কথা বলে, তারা প্রেস ক্লাব কিংবা সিরডাপে এসে সভা-সেমিনারে অনেক বড় বড় ভাষণ দেয়। আজকে পেপারে দেখলাম, পাকিস্তানের মতো রাষ্ট্র পদ্মা সেতু হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানিয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানের অনুসারী যারা বাংলাদেশে আছেন, তারা প্রধানমন্ত্রীকে পদ্মা সেতুর জন্য এখনও অভিনন্দন জানাতে পারেননি।’

তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতু আমাদের সক্ষমতার প্রতীক। অবৈধ পথে যারা বাংলাদেশের উন্নয়ন বন্ধ করতে চেয়েছে তাদের মুখে চপেটাঘাত। সারা দেশের যেখানেই যাবেন শেখ হাসিনার কৃতিত্ব খুঁজে পাবেন।’

আলোচনায় পদ্মা সেতু প্রকল্পে ষড়যন্ত্রে ড. মুহাম্মদ ইউনূস একা ছিলেন না বলে জানিয়েছেন সাংস্কৃতিক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, ড. ইউনূস তিনি কি একাই ষড়যন্ত্র করেছিলেন? তার সঙ্গে কি এদেশের সংবাদপত্র ছিল না? সংবাদপত্রের সম্পাদক কয়েকজন ছিল না তার সাথে? তারাও তার (ড. ইউনূস) সাথে ছিল তো। তারাও ষড়যন্ত্র করেছে।

তিনি আরও বলেন, ‘ড. কামাল হোসেনের মেয়ে ছিল তার সঙ্গে। তার নেতৃত্বে গুলশানে, একটি জনপ্রিয় পত্রিকার সম্পাদক, ড. ইউনূস, তার প্রতিনিধি সভা করেছে পদ্মা সেতুর লোন কী করে বাতিল করা যায় বিশ্বব্যাংককে দিয়ে। অনেক প্রচারমাধ্যম ও বুদ্ধিজীবী পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি হয়েছে অভিযোগ তুলে আওয়ামী লীগ সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল।’

আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট অভিনেতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

বক্তব্য রাখেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও সাংবাদিক সুভাষ সিংহ রায়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অসীম সরকার, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Allegations of BNPs torture are fictional Quader

বিএনপির নির্যাতন-নিপীড়নের অভিযোগ কল্পিত: কাদের

বিএনপির নির্যাতন-নিপীড়নের অভিযোগ কল্পিত: কাদের ওবায়দুল কাদের। ছবি: সংগৃহীত
“বিএনপি মহাসচিবের উপস্থিতিতে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতারা বিভিন্ন রাজনৈতিক সমাবেশে '৭৫-এর হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার’ স্লোগানের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দিয়ে বক্তৃতা প্রদান করেছে। এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও ফৌজদারি অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করার পরও বিএনপি নেতাদের দমনে হিংস্র আচরণ তো দূরের কথা, সরকারের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।"

বিএনপির ওপর সরকার নির্যাতন-নিপীড়ন চালাচ্ছে বলে দলের নেতারা যে অভিযোগ করে আসছেন, তাকে কল্পিত বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি তাদের ব্যর্থতা ও হতাশা ঢাকতে সরকারের বিরুদ্ধে নির্যাতন-নিপীড়নের অভিযোগ তুলছে।

বুধবার এক বিবৃতিতে গণমাধ্যমে প্রকাশিত বিএনপি মহাসচিবের বিভিন্ন অভিযোগের জবাবে এসব কথা বলেন তিনি।

বিরোধী দল দমনে সরকার হিংস্র রূপ ধারণ করেছে– ফখরুলের এমন অভিযোগ নিয়ে কাদের বলেন, ‘তার এমন অভিযোগের মধ্য দিয়ে আবারও প্রমাণিত হয়েছে বিএনপি চিরাচরিত মিথ্যাচারের অপরাজনীতি থেকে এখনও বেরিয়ে আসতে পারেনি।’

তিনি বলেন, “বিএনপি মহাসচিবের উপস্থিতিতে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতারা বিভিন্ন রাজনৈতিক সমাবেশে '৭৫-এর হাতিয়ার, গর্জে উঠুক আরেকবার’ স্লোগানের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকি দিয়ে বক্তৃতা প্রদান করেছে। এমন ঔদ্ধত্যপূর্ণ ও ফৌজদারি অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করার পরও বিএনপি নেতাদের দমনে হিংস্র আচরণ তো দূরের কথা, সরকারের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো আইনি পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়নি।’’

বিএনপি নেতারা গণতান্ত্রিক আন্দোলন সংগ্রামে ব্যর্থ হয়ে এবং তাদের দেশবিরোধী ধ্বংসাত্মক রাজনীতির কারণে জনগণ দ্বারা প্রত্যাখ্যাত হয়ে প্রলাপ বকতে শুরু করেছেন বলেও মন্তব্য করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

দেশ সন্ত্রাসের অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে বলে বিএনপি মহাসচিবের মন্তব্য প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘দেশ সন্ত্রাসের অভয়ারণ্য, অন্যদিকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে বলেন, বিরোধী মতের ওপর দমন-পীড়ন হচ্ছে, বিএনপি মহাসচিবকে এই দ্বিচারিতা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে।’

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে, সুনির্দিষ্ট তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে অপরাধীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। বিএনপি মহাসচিব রাজনৈতিক বক্তব্যের আড়ালে এসব সন্ত্রাসীকে রক্ষা করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছেন।

‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররা আজ সন্ত্রাসের কথা বলেন। বলেন, বিরোধী দল দমনের কথা। অথচ বিরোধী দল দমন-পীড়ন ও রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় রাজনৈতিক সন্ত্রাস সৃষ্টির মধ্য দিয়েই ইতিহাসের কুখ্যাত স্বৈরশাসক জিয়াউর রহমান বিএনপি নামক রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করেছিল।’

আরও পড়ুন:
বিএনপি যাই বলুক নির্বাচনে আসবে, ভোট ইভিএমে হোক: কাদের
জনদুর্ভোগ নিয়ে রাজনীতি করছে বিএনপি: কাদের
কেউ আগুন নিয়ে খেলছে: কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fair will not be played in the election of Makari Tuku

মকারির নির্বাচনে আর না, খেলা হবে ‘ফেয়ার’: টুকু

মকারির নির্বাচনে আর না, খেলা হবে ‘ফেয়ার’: টুকু সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল মাহমুদ টুকু। ছবি: নিউজবাংলা
টুকু বলেন, ‘এই সরকারের অধীনে আগে একবার নির্বাচন হয়েছিল, আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। আমরা বিশ্বাস করে সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম, কিন্তু তারা দিনের ভোট রাতেই শেষ করে দিয়েছে।’

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের অধীনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি আর অংশ নেবে না জানিয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল মাহমুদ টুকু বলেছেন, খেলা হবে ‘ফেয়ার’।

বুধবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে ও পুষ্পস্তবক অর্পণ করে সাংবাদিকদের কাছে এ মন্তব্য করেন তিনি। যুবদলের নবগঠিত কমিটির উদ্যোগে এ আয়োজন করা হয়।

টুকু বলেন, ‘এই সরকারের অধীনে আগে একবার নির্বাচন হয়েছিল, আমরা সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম। আমরা বিশ্বাস করে সেই নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলাম, কিন্তু তারা দিনের ভোট রাতেই শেষ করে দিয়েছে।

‘আবার এখন ইভিএম, ইভিএম করছে। অর্থাৎ রাতের বেলা সিল মারতে হবে না, দিনের বেলা ঘরে বসেই সব ভোট নিয়ে নিতে পারবে। এ রকম মকারির নির্বাচনে মধ্যে আমরা যাব না।’

টুকু বলেন, ‘যতক্ষণ একটি নিরপেক্ষ সরকার না আসবে বিএনপি সেই নির্বাচনে অংশ নেবে না। বিএনপি একটি সুষ্ঠু গণতান্ত্রিক পরিবেশে নির্বাচন করতে চায়।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি দেখিয়ে দিয়েছে গণতন্ত্র কাকে বলে। বেগম খালেদা জিয়া পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার দিয়েছিলেন। সেই নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিএনপি পরাজয় বরণ করেছিল। এটাকেই বলে আসল গণতন্ত্র।

‘এই সরকারের যদি সৎ সাহস থাকে তাহলে তারা নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনে আসুক। আমরা যদি পরাজয় বরণ করি করব। তবে খেলাটা ফেয়ার হতে হবে।’

সিইসির চারদিনে ভোট করার প্রস্তাব সম্পর্কে টুকু বলেন, ‘তিনি হাইব্রিড কি না জানিনা, আবার তিনি চার দিনে কেন নির্বাচন করতে চান সেটাও জানিনা।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ জন্মের আগে থেকেও আমরা একদিনেই ভোট করি। চার দিনে ভোট করার মানে হলো ভোটগুলো এনে ডিসি অফিসে রাখা, আর ডিসি অফিসকে কেউ বিশ্বাস করে না। সুতরাং এটি বাংলাদেশ হবে না।’

এ সময় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, যুবদলের সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম নীরব, বর্তমান সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাধারণ সম্পাদক মোনায়েম মুন্না, সিনিয়র সহ সভাপতি মামুন হাসান, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক মিল্টন, যুগ্ম সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিনসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বন্যার্তদের জন্য ৩০ লাখের তহবিল গড়বে যশোর বিএনপি
পদ্মা সেতু নিয়ে খুশি হতে পারেনি বিএনপি: তথ্যমন্ত্রী
ফের করোনা আক্রান্ত মির্জা ফখরুল

মন্তব্য

p
উপরে