× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
In response to the budget A League joy procession distributed sweets
hear-news
player
print-icon

বাজেটের প্রতিক্রিয়ায় আ.লীগের আনন্দ মিছিল, মিষ্টি বিতরণ

বাজেটের-প্রতিক্রিয়ায়-আলীগের-আনন্দ-মিছিল-মিষ্টি-বিতরণ
বাজেট প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে রাজধানীতে যুবলীগের মিছিল। ছবি: সংগৃহীত
আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বাজেটের প্রশংসা করে গণমাধ্যমে বলেন, ‘এই বাজেট সময়োপযোগী ও জনকল্যাণমুখী। বহির্বিশ্বে যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতি যখন মন্দা, সে মুহূর্তে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার সময়োপযোগী বাজেট দিয়েছে।’

আগামী অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে সন্তোষ জানিয়ে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ বলেছে, এটি ‘জীবন ও জীবিকা বাঁচানোর আত্মনির্ভরশীল বাজেট’।

নেতারা বলেছেন, সংকটকালীন জীবন ও জীবিকাকে প্রাধান্য দিয়ে একটি বাস্তবভিত্তিক সময়োপযোগী বাজেট দিয়েছে সরকার। এই বাজেট ‘গণমুখী, উন্নয়নমুখী ও জনবান্ধব’।

বাজেটের সমর্থনে বৃহস্পতিবার স্বস্তির বৃষ্টিতেও রাজধানীর থানা-ওয়ার্ডে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেছে আওয়ামী লীগ ও এর বিভিন্ন সহযোগী-সমমনা সংগঠনগুলো।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর ২৩ বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউর সামনে ২০২২-২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিল করে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ।

মিছিলে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফীর নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহসভাপতি হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন, সাধারণ সম্পাদক হুমায়ুন কবির, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মিরাজ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির, শরিফুল ইসলাম শরিফ, দপ্তর সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগও প্রস্তাবিত বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে একটি আনন্দ মিছিল আয়োজন করে। মিছিল-উত্তর সমাবেশ পরিচালনা করেন ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মান্নান কচি।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বাজেটের প্রশংসা করে গণমাধ্যমে বলেন, ‘এই বাজেট সময়োপযোগী ও জনকল্যাণমুখী। বহির্বিশ্বে যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতি যখন মন্দা, সে মুহূর্তে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার সময়োপযোগী বাজেট দিয়েছে।

‘বিশেষ করে পিছিয়ে পড়া নিম্নবিত্ত মানুষেরা যাতে করে সমানতালে এগিয়ে যেতে পারে সেদিকে লক্ষ রেখে বাজেট ঘোষণা হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যবসায়ীরা যেন উপকৃত হয়, সেদিকেও লক্ষ রাখা হয়েছে। এতে বেকারত্ব কমবে, উদ্যোক্তা বাড়বে।’

নানক বলেন, ‘এই বাজেট বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যে অগ্রসর হতে সহায়ক হবে। দেশকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের বসবাসের উপযোগী একটি আধুনিক রাষ্ট্র গড়ে তোলার লক্ষ্যে শেখ হাসিনার সরকার এ বাজেট জাতির কাছে উপস্থাপন করেছে।’

বাজেটের প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম গণমাধ্যমকে বলেন, ‘এই বাজেটে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর দিকে বিশেষ লক্ষ রাখা হয়েছে। জনবান্ধব ও উন্নয়নবান্ধব এই বাজেটকে আমরা স্বাগত জানাই। এতে কোভিড-পরবর্তী পরিস্থিতিতে কর্মসংস্থানের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বৈশ্বিক পরিস্থিতির সঙ্গে খেয়াল রেখেই এই বাজেট খেটে খাওয়া মানুষের বাজেট, ব্যবসাবান্ধব ও গণমুখী বাজেট।’

প্রস্তাবিত বাজেটকে শিক্ষাবান্ধব, ব্যবসাবান্ধব, জনকল্যাণমূলক, উন্নয়নমুখী বলেছে যুবলীগ।

বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউসংলগ্ন এলাকায় যুবলীগের উদ্যোগে আনন্দ মিছিল ও সমাবেশ হয়। মিছিল ও সমাবেশের নেতৃত্ব দেন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে মিছিল ও আনন্দ শোভাযাত্রা করেছে যুবলীগ, শ্রমিক লীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

বিকেলে যাত্রাবাড়ী থানা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক বাচ্চু খন্দকার দলীয় কার্যালয়ে বাজেটকে জনবান্ধব উল্লেখ করে এক দোয়া ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করেন। পরে নেতাকর্মী ও লেগুনা-বাসচালক শ্রমিকদের মাঝে মিষ্টি বিতরণ করেন।

এর আগে যাত্রাবাড়ী চৌরাস্তা মোড়ে আনন্দ মিছিল বের করে শ্রমিক লীগ।

আরও পড়ুন:
ধ্যান করতেও দিতে হবে কর
খাদ্যে ভর্তুকি জরুরি ছিল: জাপা
বাজেটের প্রতিক্রিয়া দিতে চাই না: ফখরুল
ঋণ করে ঘি খাওয়ার বাজেট: সিপিবি
শীতাতপ রেস্তোরাঁয় খাওয়ার খরচ কমল

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
VAT lotus increased bitumen in meditation

মেডিটেশনে ভ্যাট কমল, বাড়ল বিটুমিনে

মেডিটেশনে ভ্যাট কমল, বাড়ল বিটুমিনে মেডিটেশন সেবার ওপর মূল্য সংযোজন কর–ভ্যাট কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ছবি: সংগৃহীত
মেডিটেশন সেবার ওপর মূল্য সংযোজন কর–ভ্যাট কমানোর সিদ্ধান্ত এসেছে। প্রত্যাহার করা হয়েছে আমদানিকরা লিফটের ভ্যাট। অন্যদিকে, আমদানিকরা বিটুমিনে (আলকাতরা) নতুন করে ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে।

বাজেটে আরও কিছু পরিবর্তন হয়েছে। মেডিটেশন সেবার ওপর মূল্য সংযোজন কর–ভ্যাট কমানোর সিদ্ধান্ত এসেছে। প্রত্যাহার করা হয়েছে আমদানিকরা লিফটের ভ্যাট। অন্যদিকে, আমদানিকরা বিটুমিনে (আলকাতরা) নতুন করে ভ্যাট আরোপ করা হয়েছে।

জাতীয় সংসদে বুধবার এই পরিবর্তনের প্রস্তাব আনেন অর্থমন্ত্রী, যা পাস হয় কন্ঠভোটে।

গত ৯ জুন বাজেট ঘোষণায় মেডিটেশন সেবার ওপর ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাট আরোপের প্রস্তাব করা হয়। এতে প্রবল আপত্তি জানায় মেডিটেশন সেবাগ্রহণকারীরা।

এমন প্রেক্ষাপটে এই সেবার ওপর ভ্যাট হার ১৫ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়। এতে যারা মেডিটেশন সেবা নেবেন, তাদের খরচ কমবে।

বাজেট ঘোষণার সময় আমদানি করা লিফটের ওপর ভ্যাট বাড়িয়ে মোট ৩১ শতাংশ করা হয়। মূলত দেশীয় লিফট শিল্পের সুরক্ষায় বাড়তি কর আরোপ হয়।

লিফট আমদানিকারকরা বলছে, এত বেশি কর দিয়ে লিফট আনলে খরচ অনেক বাড়বে। এতে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে আবাসনখাতে। এ অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে লিফট আমদানিতে ভ্যাট হার ১৫ শতাংশ প্রত্যাহার করা হয়।

বাজেট ঘোষণায় বিটুমিন আমদানিতে বাড়তি ভ্যাট আরোপ করা হয়নি। দেশে বিটুমিন শিল্প নতুন করে গড়ে উঠেছে। তাই এই শিল্পের সুরক্ষায় আমদানি করা বিটুমিনে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়। এতে করে আমদানি করা বি-টুমিন দাম পড়বে বেশি। পক্ষান্তরে, দেশীয় বি-টুমিন শিল্পের চাহিদা বাড়বে।

আরও পড়ুন:
মিতব্যয়ী হোন, দেশেই চিকিৎসা নিন: প্রধানমন্ত্রী
স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল
জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে এশিয়ায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ হবে বাংলাদেশ
করপোরেট করের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিল হচ্ছে
মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Be frugal and get treatment in the country PM

মিতব্যয়ী হোন, দেশেই চিকিৎসা নিন: প্রধানমন্ত্রী

মিতব্যয়ী হোন, দেশেই চিকিৎসা নিন: প্রধানমন্ত্রী সংসদ অধিবেশনে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: পিআইডি
‘একে তো করোনা মহামারির নেতিবাচক প্রভাব, তার ওপর মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে এসেছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এসব প্রতিকূলতা মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে।’

বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে জনগণকে মিতব্যয়ী হতে, সঞ্চয় বাড়াতে, দেশীয় পণ্য ব্যবহার করতে এবং দেশেই চিকিৎসা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও পানি ব্যবহারে মিতব্যয়ী হওয়া, বিলাসী পণ্য পরিহারের অনুরোধও করেছেন তিনি।

বুধবার রাতে স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশনে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারপ্রধান এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘প্রত্যেককে তার নিজ নিজ জায়গা থেকে যতটুকু সম্ভব কৃচ্ছ্রসাধন করতে হবে, ব্যক্তিগত সঞ্চয় করতে হবে। প্রত্যেকের নিজস্ব সঞ্চয় বাড়ানো এবং প্রত্যেককে মিতব্যয়ী হতে হবে।

‘দেশীয় পণ্যের ব্যবহার বাড়াতে হবে। কথায় কথায় দৌড়ায়ে বিদেশে যেয়ে চিকিৎসা নেয়া যাবে না। দেশেও ভালো চিকিৎসা হয়।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যুৎ ঢালাও ব্যবহার করবেন না, অপচয় যেন না হয় সকলেই কিছু কৃচ্ছ্রসাধন করে কিছুটা সঞ্চয় করে নিজেকে সুরক্ষিত রাখবেন। আমদানি করা বিলাসী পণ্য পরিহার করে সবাইকে দেশীয় পণ্য ব্যবহারের দিকে নজর দিতে হবে।’

করোনা পরিস্থিতির উন্নতির পর ইউক্রেনে রুশ হামলার পর দেশে দেশে দেখা দেয়া সংকটের বিষয়টিও উঠে আসে সরকারপ্রধানের বর্ণনায়। এই সময়েও বাংলাদেশের অর্থনীতি চাপ সামলে এগিয়ে চলছে বলে মনে করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একে তো করোনা মহামারির নেতিবাচক প্রভাব, তার ওপর মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা হিসেবে এসেছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। এসব প্রতিকূলতা মোকাবিলা করেই এগিয়ে যেতে হবে।


‘শত বাধা ও চাপের মুখে পড়লেও আমরা দৃঢ়ভাবে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি। অনেক প্রতিকূল অবস্থায় এগোতে হচ্ছে। উন্নত দেশগুলো যেখানে হিমশিম খাচ্ছে, সেখানে আমাদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন গতিশীলতা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছি।

‘এ ব্যাপারে সকলের সহযোগিতা চাই। আমাদের দেশে, বিদেশে, বাইরে সব জায়গায় তো একটা বাধা পেতে হয়। সেটা অতিক্রম করে আমরা অসম্ভবকে সম্ভবে পরিণত করছি। আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যাব। এ জন্য জনগণের সর্বাত্মক সহযোগিতা চাই। জনগণের সর্বাত্মক সহযোগিতা পেলে এই বাজেট সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে পারব।’

গত ৯ জুন আগামী অর্থবছরের জন্য বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। দুই সপ্তাহের বেশি আলোচনা পর্যালোচনার জন্য কিছু পরিবর্তন করে বুধবারের মধ্যে বাজেট পাস করে।

সরকারপ্রধান উল্লেখ করেন, ‘দেশের মানুষ তার প্রত্যেকের জায়গা থেকে সরকারকে সহযোগিতা করতে পারে। যেমন ব্যক্তিগত পর্যায়ে সঞ্চয় বাড়ানোর মাধ্যমে জাতীয় সঞ্চয় বৃদ্ধিতে অবদান রাখতে পারে যে কেউ। সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় তথা অপচয় কমিয়ে এবং আমদানিকৃত বিলাস পণ্য পরিহার করে শুধু প্রয়োজনীয় জিনিস কেনায় মনোযোগী হলে দেশ উপকৃত হবে।’

স্থানীয় শিল্পের বিকাশে বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী। তার সরকারকে ব্যবসাবান্ধব উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘করপোরেট কর হার আরও কমিয়ে কর হার ২ দশমিক ৫০ ভাগ হারে হ্রাস করা হয়েছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশি-বিদেশি বাধা অতিক্রম করে আমরা অসম্ভবকে সম্ভবে পরিণত করছি। তার কারণ, আমাদের দেশের মানুষের আলাদা শক্তি আছে। তারা বুঝতে পারে, অনুধাবন করতে পারে। তখনই তাদের শক্তি বোঝা যায়। পদ্মা সেতুর ক্ষেত্রে সেটা প্রযোজ্য।

‘জাতির পিতার ডাকে বিজয় ছিনিয়ে এনেছিল এ দেশের মানুষ। স্বাধীনতার জন্য জীবন বিলিয়ে দিয়েছিল। আমাদের মানুষকে নিয়েই এগোতে হবে।’

আরও পড়ুন:
সরকারি কর্মকর্তাদের জবাবদিহি নিশ্চিতে আলাদা কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব
মেগা প্রকল্পে বরাদ্দ কমিয়ে বাজেটে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ
আবাসনে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনা প্রশ্নে বিনিয়োগের সুযোগ চায় রিহ্যাব
ঢাবির ৯২২ কোটি টাকার বাজেট পাস
সংসদে সম্পূরক বাজেট পাস

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The proposal to bring movable and immovable property in the country was rejected

স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল

স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল সংসদে বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ফাইল ছবি
দেশের বাইরে কারও সম্পদের খোঁজ পাওয়া গেলে সেই সম্পদ অর্জনের উৎস সম্পর্কে জানতে চাওয়া হবে। সন্তোষজনক জবাব পাওয়া না গেলে ওই সম্পদের মূল্যের সমপরিমাণ জরিমানা অথবা সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। নতুন বাজেটে এটিসহ আর কিছু কর প্রস্তাবে পরিবর্তন এনে অর্থবিল-২০২২ পাস হয়েছে।

পাচারের অর্থ-সম্পদ দেশে ফেরত আনতে ২০২২-২৩ অর্থবছরের জাতীয় বাজেটে যেসব সুযোগ দেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছিল তাতে বড় ধরনের পরিবর্তন আনা হয়েছে।

সে অনুযায়ী পাচারের সব ধরনের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ দেশে আনার প্রস্তাব বাতিল করা হয়েছে। শুধু নির্ধারিত হারে কর দিয়ে নগদ টাকা দেশে আনা যাবে।

সংশোধনীতে নতুন করে একটি শর্ত যুক্ত করা হয়েছে। তা হলো, দেশের বাইরে কারও সম্পদের খোঁজ পাওয়া গেলে সেই সম্পদ অর্জনের উৎস সম্পর্কে জানতে চাওয়া হবে। সন্তোষজনক জবাব পাওয়া না গেলে ওই সম্পদের মূল্যের সমপরিমাণ জরিমানা অথবা বাজেয়াপ্ত করা হবে।

নতুন বাজেটে এটিসহ আর কিছু কর প্রস্তাবে পরিবর্তন এনে অর্থবিল-২০২২ পাস হয়েছে।

বুধবার জাতীয় সংসদে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর এসব সংশোধনী আনেন। পরে তা কণ্ঠভোটে পাস হয়।

বিদেশ থেকে পাচারের টাকা ফেরত আনতে গত ৯ জুন ঘোষিত বাজেটে বিশেষ সুযোগ দেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়।

বলা হয়, স্থাবর সম্পদ দেশে আনার ক্ষেত্রে ১৫ শতাংশ এবং অস্থাবর সম্পদের ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ কর দিয়ে ফেরত আনা যাবে। আর কেউ যদি নগদ টাকা দেশে আনতে চায় তাকে কর দিতে হবে ৭ শতাংশ।

এ নিয়ে দেশ জুড়ে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। মূলত এমন অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে বাজেট প্রস্তাবে এই সংশোধন আনা হয়েছে।

সংশোধনীতে শুধু নগদ টাকা আনার সুযোগ রেখে বাকি দুটি অর্থাৎ স্থাবর ও অস্থাবর সম্পদ আনার প্রস্তাব বাতিল করা হয়েছে।

কোম্পানির করপোরেট কর সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রেও সংশোধন আনা হয়েছে। বলা হয়েছে, যেসব কোম্পানি বছরে ৩৬ লাখার টাকার বেশি ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করবে তারা কম হারে করপোরেট কর পরিশোধের সুবিধা পাবে। প্রস্তাবিত বাজেটে এই সীমা ছিল বছরে ১২ লাখ টাকা। অর্থাৎ এ ক্ষেত্রে নগদ লেনদেনের ক্ষেত্রে কোম্পানিকে ছাড় দেয়া হয়েছে।

নতুন কোম্পানির বার্ষিক রিটার্ন জমার নিয়ম সহজ করা হয়েছে। যেসব কোম্পানির ব্যবসার বয়স এক কিংবা দুই বছর সেসব কোম্পানি শুধু টিআইএন সনদ দিলেই রিটার্ন গ্রহণ করা হবে। সঙ্গে অন্যান্য আনুষঙ্গিক দলিলপত্র জমা না দিলেও চলবে। তবে তৃতীয় বছর থেকে সব ডকুমেন্টসহ রিটার্ন জমা দিতে হবে।

শ্রমিকদের কল্যাণে সব প্রতিষ্ঠানে একটি তহবিল থাকার কথা। নিয়ম অনুযায়ী, মালিক পক্ষ ওই তহবিলে যে পরিমাণ টাকা দেয় তা কোম্পানির খরচ হিসেবে গণ্য করা হয়। এতে করে কোম্পানির ওপর করের চাপ কমে।

প্রস্তাবিত বাজেটে খরচের বিধান বাতিল করলেও সংশোধন করে তা ফের আগের অবস্থানে নেয়া হয়। তবে এই সুযোগ এক বছরের জন্য বহাল থাকবে বলে উল্লেখ করা হয়।

আরও পড়ুন:
মেগা প্রকল্পে বরাদ্দ কমিয়ে বাজেটে ভর্তুকি বাড়ানোর পরামর্শ
আবাসনে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনা প্রশ্নে বিনিয়োগের সুযোগ চায় রিহ্যাব
ঢাবির ৯২২ কোটি টাকার বাজেট পাস
সংসদে সম্পূরক বাজেট পাস
মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা নেই বাজেটে: সানেম

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangladesh will be the second highest GDP growth in Asia

জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে এশিয়ায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ হবে বাংলাদেশ

জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে এশিয়ায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ হবে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। ফাইল ছবি
অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকারের গত ১৩ বছরের অনন্য অর্জনসমূহ রূপকথার গল্পগাঁথাকেও হার মানায়। ২০০৯ থেকে ২০১৯ সময়ে জিডিপিতে ১৮৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল প্রথম। যেখানে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা চায়নার প্রবৃদ্ধি ছিল ১৭৭ শতাংশ।’

মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধির হার বিবেচনায় বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছরে বাংলাদেশের অবস্থান হবে এশিয়ায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ। জিডিপি প্রবৃদ্ধির এই অবস্থান আগামী অর্থবছরও অটুট থাকবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

জাতীয় সংসদে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেট আলোচনার উপর সমাপনী বক্তব্যে বুধবার তিনি এমন তথ্য দেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকারের গত ১৩ বছরের অনন্য অর্জনসমূহ রূপকথার গল্পগাঁথাকেও হার মানায়। ২০০৯ থেকে ২০১৯ সময়ে জিডিপিতে ১৮৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল প্রথম। যেখানে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা চায়নার প্রবৃদ্ধি ছিল ১৭৭ শতাংশ।’

এ সময় অর্থমন্ত্রী সংসদকে জানান, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের হিসাবে বিদায়ী ২০২১-২২ অর্থবছর এবং আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছর বাংলাদেশের জিডিপিতে প্রবৃদ্ধির হার হবে এশিয়ায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

করোনা মহামারি ও রাশিয়া ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যেও দেশের অর্থনীতির এই ক্রমোন্নতিতে নেতৃত্বের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি তিনি কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেন।

বাজেটের সমাপনী বক্তব্যে অর্থমন্ত্রী পদ্মা সেতুর প্রসঙ্গও টানেন। আ হ ম মুস্তফা কামাল দাবি করেন, পদ্মা সেতুর হাত ধরে তিনি আমাদের বিশ্ব মানচিত্রে এক ঐতিহাসিক উচ্চতায় পৌঁছে দিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
করপোরেট করের সুবিধা পেতে শর্ত শিথিল হচ্ছে
মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ
‘ধ্যানের ওপর ভ্যাট’ প্রত্যাহারের প্রস্তাব সংসদে
ব্যবসা সহজ নাকি কঠিন হলো
সরকারি কর্মকর্তাদের জবাবদিহি নিশ্চিতে আলাদা কর্তৃপক্ষ গঠনের প্রস্তাব

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Recommendation to increase the allocation in the budget for the wash sector

বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ

বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ বাজেটে ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়ানোর সুপারিশ করেছেন পরিবেশবাদীরা। ছবি: নিউজবাংলা
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাজেট বরাদ্দ কম হলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা কঠিন হয়ে পড়বে। যদিও ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে আঞ্চলিক বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে কিছু ইতিবাচক প্রবণতা দেখা গেছে।

প্রস্তাবিত বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) নিরাপদ পানি, স্যানিটেশন, পরিবেশ ও সক্ষমতা তৈরিসহ ওয়াশ খাতে বরাদ্দ বাড়াতে সুপারিশ করেছেন পরিবেশবাদীরা। ওয়াশ খাতে বরাদ্দ না বাড়ালে ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের কাজ ধীরগতিতে হবে বলে মনে করছেন তারা।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে পরিবেশবাদী সংগঠনের নেতারা এ বিষয়ে যুক্তি তুলে ধরেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, বাজেট বরাদ্দ কম হলে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জন্য আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা কঠিন হয়ে পড়বে। যদিও ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেটে আঞ্চলিক বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে কিছু ইতিবাচক প্রবণতা দেখা গেছে।

বাজেটে হাওর এবং পার্বত্য এলাকায় বরাদ্দ কিছুটা বেড়েছে, তবে চর এবং উপকূলীয় এলাকায় বরাদ্দ বাড়েনি। প্রস্তাবিত বাজেটে এ বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনার দাবি রাখে। ওয়াশ খাতের আসন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বরাদ্দ বাড়ানো এখন সময়ের দাবি।

নিরাপদ পানি ও পরিবেশ নিয়ে কাজ করা ওয়াটার এইড বাংলাদেশ, পিপিআরসি, ইউনিসেফ বাংলাদেশ, ফানসা-বিডি, এফএসএন নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ ওয়াটার ইনটিগ্রিটি নেটওয়ার্ক (বাউইন), স্যানিটেশন অ্যান্ড ওয়াটার ফর অল, অ্যান্ড ওয়াটার পভার্টি, এমএইচএম প্ল্যাটফর্ম এবং ওয়াশ অ্যালায়েন্স ইন্টারন্যাশনাল যৌথভাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

এতে উপস্থিত ছিলেন পিপিআরসির নির্বাহী চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান, ওয়াটার এইডের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর হোসেন ইশরাত আদিবসহ ওয়াশ নেটওয়ার্কের প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন:
গণশৌচাগারের জন্য বাজেট আছে, জায়গা নেই
স্যানিটেশন ও হাইজিনে আরও বরাদ্দ দাবি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Budget discussion meeting at DU

ঢাবিতে বাজেটবিষয়ক আলোচনা সভা

ঢাবিতে বাজেটবিষয়ক আলোচনা সভা রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে বাজেটবিষয়ক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধে কোভিড-পরবর্তী বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অগ্রসর হওয়ার লক্ষ্যে জাতীয় বাজেটে শিক্ষা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিকে অগ্রাধিকার দেয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। বলা হয়, এ ক্ষেত্রে উদীয়মান চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় বরাদ্দ অর্থের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাজেট ২০২২-২৩ : শিক্ষা ও কর্মসংস্থান’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

রোববার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মুজাফফর আহমেদ চৌধুরী মিলনায়তনে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসি।

সেন্টারের পরিচালক অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

প্রবন্ধে কোভিড-পরবর্তী বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে অগ্রসর হওয়ার লক্ষ্যে জাতীয় বাজেটে শিক্ষা ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিকে অগ্রাধিকার দেয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। বলা হয়, এ ক্ষেত্রে উদীয়মান চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলা করতে বরাদ্দ অর্থের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অর্থনীতি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মাহবুবুল মোকাদ্দেম আকাশ ও উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রাশেদ আল মাহমুদ তিতুমীর প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় অংশ নেন।

মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার শিক্ষার মাধ্যমে একটি কল্যাণকর ও সমৃদ্ধ রাষ্ট্র তৈরিতে কাজ করে যাচ্ছে। শিক্ষার গুণগত পরিবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।’

সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে শিক্ষার মানোন্নয়নের জন্য তিনি শিক্ষক, গবেষক ও শিক্ষার্থীদের প্রতি আহ্বান জানান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, শিক্ষা ও কর্মসংস্থান ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বিশ্ববিদ্যালয়কে উদ্ভাবনের প্রাণকেন্দ্র। উচ্চশিক্ষার গুণগত মান বৃদ্ধি ও উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণের ক্ষেত্রে শিক্ষক ও গবেষকদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ ও সেন্টার অন বাজেট অ্যান্ড পলিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগের অধ্যাপক ড. কাজী মারুফুল ইসলাম অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন।

আরও পড়ুন:
বেলায়েত বললেন, ঢাবির পরীক্ষা মোটামুটি হয়েছে
কারাগারে বসে ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের পরীক্ষা
র‍্যাঙ্কিংয়ে ‘অ্যাটেনশন নেই’ ঢাবি উপাচার্যের
ভর্তি পরীক্ষা হলো ঢাবির ‘ক’ ইউনিটে
ঢাবির ‘ক’ ইউনিটে ভর্তির লড়াই শুরু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
FICCIs concern over increase in VAT on mobiles

মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ

মোবাইলে ভ্যাট বাড়ানোয় এফআইসিসিআইয়ের উদ্বেগ বাংলাদেশের ব্যবসা ও বিদেশি বিনিয়োগের ওপর বাজেটের সম্ভাব্য প্রভাব নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এফআইসিসিআই। ছবি: সংগৃহীত
নাসের এজাজ বিজয় বলেন, ‘আমরা এই সময় যখন ডিজিটালাইজেশনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, তখন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট, বিশেষ করে মোবাইল ফোনের ওপর ৫ শতাংশ ভ্যাট বাড়ানো ঠিক হচ্ছে না।’

মোবাইল ফোনের ওপর আগামী অর্থবছরের বাজেটে ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করার যে প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী, তাতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ফরেন ইনভেস্টরস চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি বা এফআইসিসিআই।

বাংলাদেশের ব্যবসা ও বিদেশি বিনিয়োগের ওপর বাজেটের সম্ভাব্য প্রভাব সম্পর্কে রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মলনের আয়োজন করে সংগঠনটি। সেখানেই এমন উদ্বেগের কথা জানান এফআইসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

গত ৯ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল ২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট ঘোষণা করেন।

বাজেট নিয়ে এই সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন ফরেন এফআইসিসিআই প্রেসিডেন্ট ও স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের সিইও নাসের এজাজ বিজয়।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এফআইসিসিআইয়ের নির্বাহী পরিচালক টি আই এম নূরুল কবীর।

এফআইসিসিআই প্রেসিডেন্ট নাসের এজাজ বিজয় উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, ‘আমরা এই সময় যখন ডিজিটালাইজেশনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, তখন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট, বিশেষ করে মোবাইল ফোনের ওপর ৫ শতাংশ ভ্যাট বাড়ানো ঠিক হচ্ছে না।’

এর ফলে দেশে এই শিল্পের প্রসার বাধাগ্রস্ত হবে বলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা জানান, প্রস্তাবিত বাজেটে এমন একটি বিধান অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যার ফলে একটি কোম্পানিকে ওয়ার্কার্স প্রফিট পার্টিসিপেশন ফান্ডের (ডব্লিউপিপিএফ) অবদানের ওপর কর দিতে হবে। এটি কোম্পানিটির আয়করের বোঝা ও কার্যকর করের হার বাড়িয়ে তুলবে।

বাংলাদেশে মোবাইল ফোন ব্যবসায় প্রতিটি ব্র্যান্ডের জন্য ভোক্তা পর্যন্ত তিন-চারটি স্তরে ব্যবসা পরিচালনা করা হয়। এ ক্ষেত্রে যদি মোবাইল ফোন ব্যবসার প্রতিটি স্তরে ৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয়, তবে প্রতিটি মোবাইল ফোনের খুচরা মূল্য প্রায় ১৫-২০ শতাংশ বেড়ে যাবে।

এ ক্ষেত্রে ভোক্তাপর্যায়ে অসন্তুষ্টি সৃষ্টি হবে এবং মোবাইল ফোন দেশের সিংহভাগ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে যাবে।

আরও পড়ুন:
ঢাবির ৯২২ কোটি টাকার বাজেট পাস
সংসদে সম্পূরক বাজেট পাস
মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা নেই বাজেটে: সানেম
পাচার অর্থ বিনা প্রশ্নে দেশে আনার প্রস্তাবে বিজিএমইএর সমর্থন
রডের দাম আরও বাড়বে

মন্তব্য

p
উপরে