× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Crimes against humanity Death penalty for 3 people including Jamaat leader of Naogaon
hear-news
player
print-icon

মানবতাবিরোধী অপরাধ: জামায়াত নেতাসহ নওগাঁর ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড

মানবতাবিরোধী-অপরাধ-জামায়াত-নেতাসহ-নওগাঁর-৩-জনের-মৃত্যুদণ্ড
মঙ্গলবার বিচারপতি শাহিনুর ইসলামসহ তিন বিচারপতির আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এই রায় ঘোষণা করে। 

একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের সাবেক আমির রেজাউল করিম মন্টুসহ নওগাঁর তিনজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

মঙ্গলবার বিচারপতি শাহিনুর ইসলামসহ তিন বিচারপতির আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এই রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া তিন আসামি হলেন নওগাঁর রেজাউল করিম মন্টু, নজরুল ইসলাম ও শহিদ মণ্ডল। তাদের বয়স ৬২ থেকে ৬৪ বছরের মধ্যে। এদের মধ্যে নজরুল ইসলাম পলাতক।

আসামি শহিদ মণ্ডলকে গ্রেপ্তার করা হয় ২০১৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি।

রেজাউল করিম মন্টু বর্তমান জয়পুরহাট সদরের বাসিন্দা। জেলা শহরের প্রফেসর পাড়ার রাজাকার বিল্ডিং নামে পরিচিত বাসায় থাকতেন। তিনি জয়পুরহাট জেলা জামায়াতের সাবেক আমীর।

পলাতক নজরুল ইসলাম ঢাকায় তেজগাঁওয়ে থাকেন। শহিদ মণ্ডলের বাড়ি নওগাঁর বদলগাছী থানার চাঁপাডাল গ্রামে।

আসামিদের বিরুদ্ধে আনা তিন অভিযোগ

অভিযোগ-: এ অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ৭ অক্টোবর বিকেল আনুমানিক ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত আসামিরা নওগাঁর বদলগাছী থানার পাহাড়পুর ইউনিয়নের রানাহার গ্রামে হামলা চালিয়ে স্বাধীনতার পক্ষের নিরীহ-নিরস্ত্র সাহেব আলী, আকাম উদ্দিন, আজিম উদ্দিন মণ্ডল, মোজাফফর হোসেনকে হত্যাসহ ওই সময় ১০-১২টি বাড়ি লুট করে আগুন ধরিয়ে দেন।

অভিযোগ-: ১৯৭১ সালের ৮ অক্টোবর দুপুর আনুমানিক দেড়টা থেকে বিকেল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত আসামিরা নওগাঁর বদলগাছী থানার পাহাড়পুর ইউনিয়নের খোজাগাড়ী গ্রামে হামলা চালিয়ে স্বাধীনতার পক্ষের নিরীহ-নিরস্ত্র নুরুল ইসলামকে হত্যা করেন। এ সময় তারা ১৫ থেকে ২০টি বাড়ি লুটের পর আগুন ধরিয়ে দেন।

অভিযোগ-: ১৯৭১ সালের ৮ অক্টোবর বিকেল আনুমানিক ৫টা থেকে পরদিন অর্থাৎ ৯ অক্টোবর আনুমানিক বিকেল ৫টা পর্যন্ত সময়ে নওগাঁর বদলগাছী থানার পাহাড়পুর ইউনিয়নের মালঞ্চা গ্রামে হামলা চালিয়ে স্বাধীনতার পক্ষের কেনার উদ্দিন ও আক্কাস আলীকে আটক করে নির্যাতন করে। পরে অপহরণ করে জয়পুরহাটের কুঠিবাড়ী ব্রিজে নিয়ে হত্যা করে। এ সময়ের মধ্যে আসামিরা ৪০ থেকে ৫০টি বাড়ি লুণ্ঠনের পর অগ্নিসংযোগ করেন।

আরও পড়ুন:
জামায়াত নেতার মৃত্যুদণ্ড: সাতক্ষীরায় আনন্দ মিছিল
জামায়াত নেতা খালেকসহ দুজনের মৃত্যুদণ্ড
মানবতাবিরোধী অপরাধ: ফাঁসির রায়ের ৭ বছর পর কায়সারের মৃত্যু
মানবতাবিরোধী অপরাধ: আসামির মৃত্যুতে মামলা অকার্যকর ঘোষণা
মানবতাবিরোধী অপরাধ: বিএনপি নেতা মোমিনের মৃত্যুদণ্ড

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The MP is angry over the slow construction of the road connecting the Padma Bridge

পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণে ধীরগতি, এমপির ক্ষোভ

পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক নির্মাণে ধীরগতি, এমপির ক্ষোভ নিজস্ব কার্যালয়ে বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলন করেন শরীয়তপুর ১ আসনের এমপি ইকবাল হোসেন অপু। ছবি: নিউজবাংলা
‘আমাদের ৩ সংসদ সদস্যের ডিও লেটারের ওপর ভিত্তি করে শরীয়তপুরের মানুষের চলাচলের সুবিধার্থে প্রধানমন্ত্রী ২০২০ সালে একনেকে ১ হাজার ৬৮২ কোটি টাকার ফোর লেন প্রকল্পের অনুমোদন দেন। অনুমোদনের পর দীর্ঘ প্রায় আড়াই বছর অতিবাহিত হলেও নানান জটিলতায় আশানুরূপ কাজ হয়নি।’

শরীয়তপুর থেকে পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক পর্যন্ত চার লেনের সড়ক নির্মাণে ধীরগতির কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শরীয়তপুর ১ আসনের এমপি ইকবাল হোসেন অপু।

এমপির নিজস্ব কার্যালয়ে বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

অপু বলেন, ‘আমাদের ৩ সংসদ সদস্যের ডিও লেটারের ওপর ভিত্তি করে শরীয়তপুরের মানুষের চলাচলের সুবিধার্থে প্রধানমন্ত্রী ২০২০ সালে একনেকে ১ হাজার ৬৮২ কোটি টাকার ফোর লেন প্রকল্পের অনুমোদন দেন। অনুমোদনের পর দীর্ঘ প্রায় আড়াই বছর অতিবাহিত হলেও নানান জটিলতায় আশানুরূপ কাজ হয়নি।

‘পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় এই সড়কে যানবাহনের চাপ অনেক বেড়েছে। সড়কে দীর্ঘ যানজট তৈরি হচ্ছে। ঢাকা থেকে আসার পথে আমিও জানজটে আটকা পরেছিলাম।’

মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে দ্রুত সময়ের মধ্যে সড়কটি চার লেনে উন্নীত করতে সড়ক বিভাগকে নির্দেশনা দেন এই এমপি। এ ছাড়া ঢাকা-শরীয়তপুর রুটে চলাচলকারী বিআরটিসি বাস নিয়েও গণমাধ্যমে কথা বলেন তিনি।

জেলার কিছু কিছু উপজেলা থেকে বিআরটিসি বাস চলাচল করলেও বাস মালিক সমিতির খামখেয়ালিপনায় জেলা শহর থেকে বন্ধ বাখা হয়েছে। সম্প্রতি জেলা শহরে বিআইডব্লিউটিসির বাস আটকে দেয় মালিক সমিতির সদস্যরা।

কেন জেলা শাহর থেকে বিআরটিসি বাস চলবে না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে এমপি বলেন, ‘আগামী ১৫ দিনের মধ্যে জেলা শহর থেকে রাজধানীতে বিআইডব্লিউটিসি বাস চলবে। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্ৰহণ করা হয়েছে।’

পদ্মা সেতু হয়ে যানবাহন চলাচলের সুবিধার্থে ২০২০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি শরীয়তপুর থেকে পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ২৭ কিলোমিটার চার লেনের সড়ক উন্নয়নের প্রকল্প অনুমোদন দেয় একনেক। চলতি বছরের জুন মাসের মাধ্যে কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও কাজের অগ্রগতি মাত্র ২০ শতাংশ।

বর্তমানে শরীয়তপুর থেকে কাজিরহাট পর্যন্ত ১৭ কিলোমিটার ২৪ ফুট ও কাজিরহাট থেকে পদ্মা সেতুর সংযোগ সড়ক পর্যন্ত ১২ ফুট প্রস্থের সড়ক রয়েছে। সরু এই সড়কে যানবাহন চলাচলে ভোগান্তিতে পরতে হচ্ছে যাত্রী ও চালকদের।

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতু নির্মাণে সমালোচকদের মুখে চুনকালি: রওশন
এক্সপ্রেসওয়েতে বাইকের টোল ৩০, কার ১৪০
পদ্মা সেতুর নাট বল্টু খোলা বাইজীদ ‘খালেদার অনুসারী’: নৌ প্রতিমন্ত্রী
পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীদের বিচারের পক্ষে প্রাণিসম্পদমন্ত্রী
কোথা থেকে, কীভাবে মেটানো হলো সেতুর খরচ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fear of selling livestock in Sylhet flooded

সিলেটে বন্যায় তলিয়ে হাট, পশু বিক্রি নিয়ে শঙ্কা

সিলেটে বন্যায় তলিয়ে হাট, পশু বিক্রি নিয়ে শঙ্কা
খামারি সাত্তার জানান, পানি উঠে গেছে বলে খামারেও এখন গরু রাখা যাচ্ছে না। আছে গো-খাদ্যের সংকট। তিনি হতাশ কণ্ঠে বলেন, ‘গরুগুলো না পারছি রাখতে, না পারছি বিক্রি করতে।’

সিলেটে সবচেয়ে বড় পশুর হাট বসে নগরের কাজিরবাজারে। বন্যায় এখন তলিয়েছে আছে সেই এলাকা। এ কারণে হাট বসেনি সেখানে। কবে হাট বসবে, জানে না কেউ।

কোরবানির ঈদের আর ৯ দিন বাকি। জেলার বেশিরভাগ হাটগুলো তলিয়ে যাওয়ায় পশু বিক্রি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছেন খামারিরা।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালবাজার এলাকার খামারি আব্দুস সাত্তার প্রায় ২০ লাখ টাকা বিনিয়োগ করে খামার গড়ে তুলেছেন। সেখানে এখন বিক্রির জন্য উপযুক্ত গরু আছে ৪০টি। এই ঈদে সেগুলো বিক্রি করবেন ভেবেছিলেন। কিন্তু এখনও হাট না বসায় তিনি লোকসানের শঙ্কায় আছেন।

সাত্তার বলেন, ‘হাটের জায়গাগুলো এখনও পানির নিচে। পানি কোনদিন কমবে তার কোনো ঠিক-ঠিকানা নেই। হাট বসবে কি না এ নিয়েও শঙ্কায় আছি।’

শেষদিকে হাট বসলেও আশানুরূপ ব্যবসা হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বন্যায় সব মানুষই ক্ষতিগ্রস্ত। এখন জীবন বাঁচানোই দায় হয়ে উঠেছে অনেকের। কোরবানি দেয়ার মতো পয়সা বেশিরভাগের হাতেই নেই। এ কারণে এবার পশু বিক্রি কমে যাবে। আবার বিক্রি হলেও আশানুরূপ দাম পাওয়া যাবে না।’

তিনি জানান, পানি উঠে গেছে বলে খামারেও এখন গরু রাখা যাচ্ছে না। আছে গো-খাদ্যের সংকট।

হতাশ কণ্ঠে বলেন, ‘গরুগুলো না পারছি রাখতে, না পারছি বিক্রি করতে।’

নগররের কাজিরবাজার পশুর হাটও তলিয়ে আছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, ৮ থেকে ৯ দিন ধরে তলিয়ে ছিল এই হাট। দুদিন আগে পানি নেমেছিল। তবে বুধবার থেকে আবার পানি উঠেছে। সব মিলিয়ে প্রায় ১৫ দিন ধরে এই হাটের সব কাজ বন্ধ।

কাজিরবাজার পশুর হাটের ব্যবস্থাপক শাহাদাত হোসেন লোলন জানান, সিলেটের বিভিন্ন উপজেলার খামারি ও ব্যবসায়ীরা ট্রাকে করে পশু নিয়ে আসেন। এবার বন্যার বেশিরভাগ সড়ক তলিয়ে নষ্ট হয়ে গেছে। এ কারণে কেউ পশু নিয়েও আসতে পারছেন না।

সিলেটে বন্যায় তলিয়ে হাট, পশু বিক্রি নিয়ে শঙ্কা

তিনি বুধবার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের হাটে বন্যার পানি থাকায় কোরবানির হাটের জন্য প্রস্তুতি নিতে পারিনি। আগামী শুক্রবার থেকে কোরবানির জন্য হাটের প্রস্তুতি নিচ্ছিলাম, কিন্তু আজকে আবার হাট পানিতে তলিয়ে গেছে।

‘বিভিন্ন উপজেলা থেকে হাটে স্থানীয় খামারি ও ব্যবসায়ীরা পশু নিয়ে আসেন। কিন্তু এবারের বন্যায় স্থানীয়রা অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কারও পালিত পশু মারাও গেছে। সড়ক ভেঙে যাওয়ার কারণে অনেকে পশুর গাড়ি নিয়ে নাও আসতে পারেন। তাই কোরবানির হাটে পশু ওঠা ও দামের ক্ষেত্রে এবার প্রভাব পড়বে।’


সিলেটে বসবে ৪১টি পশুর হাট

সিলেট জেলা ও মহানগরে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ৪১টি কোরবানির পশুর হাট বসার অনুমতি দিয়েছে জেলা প্রশাসন।

জেলা প্রশাসকের হলরুমে বুধবার বিকেলে ঈদ উদযাপন ও অস্থায়ী পশুর হাট স্থাপন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতিমূলক সভায় এ সিদ্ধান্ত হয় বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান।

তিনি জানান, সিলেট নগরে ৬টি এবং জেলায় ৩৫টি হাট প্রাথমিকভাবে ঘোষণা করা হয়েছে। এর বাইরে কোথাও হাট বসার অনুমতি নেই। কোথাও অবৈধভাবে হাট বসলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সিলেট সিটি করপোরেশন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত সচিব) বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, ‘নগরের ৮টি স্থান পশুর হাট বসাতে জেলা প্রশাসক বরাবর প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছিল। সেখান থেকে ৬টি হাটের অনুমোদন দেয়া হয়েছে। তবে বন্যার কারণে এবার হাট বসতে কিছুটা দেরি হচ্ছে।’

কোরবানির জন্য সিলেটে দুই লক্ষাধিক পশু প্রস্তুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো রুস্তুম আলী।

আরও পড়ুন:
‘সম্রাটকে’ গোয়াল থেকে বের করতে হয়েছে দেয়াল কেটে
নওগাঁয় প্রস্তুত ৪ লাখ ৩৩ হাজার কোরবানির পশু
কোরবানির পশুর দাম চড়ার শঙ্কা
বন্যার কবলে পৌনে ৬ লাখ শিক্ষার্থী
আসামের বন্যাদুর্গতদের জন্য ২৫ লাখ রুপি দিলেন আমির খান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Marriage before age with the permission of any court High Court

বয়সের আগে বিয়ে কোন আদালতের অনুমতিতে: হাইকোর্ট

বয়সের আগে বিয়ে কোন আদালতের অনুমতিতে: হাইকোর্ট
বয়স নির্ধারণে বিশেষ প্রেক্ষাপটে ছাড় পাবেন এমন বিধান রেখে সংসদে ‘বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭’ হয়েছে। তাতে নারীদের মতো পুরুষরাও বিশেষ প্রেক্ষাপটে ১৮ বছরের আগেই বিয়ে করার সুযোগ পাবেন।

বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনের ১৯ ধারা অনুযায়ী বিশেষ ক্ষেত্রে প্রাপ্ত বয়স হওয়ার আগে অভিভাবকের সম্মতিতে বিয়ের অনুমতির জন্য কোন আদালতে যেতে হবে, তা নির্ধারণের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট।

এ সংক্রান্ত রিটে সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আগামি তিন সপ্তাহের মধ্যে আইন সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ইলিয়াস আলী মন্ডল। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

ইলিয়াস আলী জানান, বয়স নির্ধারণে বিশেষ প্রেক্ষাপটে ছাড় পাবেন এমন বিধান রেখে সংসদে ‘বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন ২০১৭’ হয়েছে। তাতে নারীদের মতো পুরুষরাও বিশেষ প্রেক্ষাপটে ১৮ বছরের আগেই বিয়ে করার সুযোগ পাবেন।

বিভিন্ন মহলের আপত্তির মধ্যেই ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ মেয়েদের বিয়ের বয়সে ছাড়ের বিধান রেখে আলোচিত ‘বাল্য বিবাহ নিরোধ বিল-২০১৬’ সংসদে ওঠে ২০১৬ সালের ৮ ডিসেম্বর। ব্রিটিশ আমলে প্রণীত ‘চাইল্ড ম্যারেজ রেসট্রেইন্ট অ্যাক্ট-১৯২৯’ বাতিল করে নতুন আইন করতে বিলটি সংসদে তোলা হয়।

কী বলা হয়েছে বিলে

পাস হওয়া বিলে বলা হয়েছে, আইনের অন্যান্য বিধানে যা কিছুই থাকুক না কেন, কোনো বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্ক সর্বোত্তম স্বার্থে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এবং বাবা-মার সম্মতি অনুযায়ী বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বিয়ে হলে তা এ আইনের অধীন অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

যা আগে অপ্রাপ্তবয়স্কের ক্ষেত্রে শুধু নারীদের কথা উল্লেখ ছিল। এ ছাড়া ‘বিশেষ প্রেক্ষাপট’ বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত রাখা হয়েছে।

আইনে মেয়েদের বিয়ের নূন্যতম বয়স আগের মতো ১৮ বছর রাখা হলেও ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ অপ্রাপ্তবয়স্কদের বিয়ের সুযোগ রাখা হয়। এতে ক্ষেত্র বিশেষে ১৮ বছরের আগেও বিয়ে দেওয়া যেতে পারবে।

বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্ক সর্বোত্তম স্বার্থে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এবং বাবা-মার সম্মতি অনুযায়ী বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বিবাহ কার্যক্রম হলে তা এ আইনের অধীন অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

আইনজীবী ইলিয়াস আলী বলেন, ‘এখন তাহলে প্রশ্ন হলো এখানে তো কোন আদালত তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। এখন অভিভাবকরা কোন আদালতে যাবেন। নারী-শিশু আদালত, বিশেষ আদালত নাকি কোথায়। আবার এ বিষয়ে কোনো বিধিও করা হয়নি। তা হলে যদি কেউ তার সন্তানকে বিয়ে দিতে বা করাতে চান কোন আদালতে যাবেন, সেই প্রশ্নে রিট করা হয়।’

আইনটি ২০১৭ সালের ১১মার্চ গেজেট প্রকাশ করে।

আরও পড়ুন:
পয়লা জুলাই থেকে টোল নয় পোস্তগোলা ব্রিজে
উচ্চ আদালতের আদেশ না মানায় বিচারককে ভর্ৎসনা
ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানার টাকা জমা হচ্ছে কি না খতিয়ে দেখার নির্দেশ
বিয়ে ঠেকাতে হাইকোর্টে ‘ব্রিটিশ কিশোরী’
সদরঘাটে পা হারানো কবিরকে কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে রুল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mistreatment of teachers RU students in jail

শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণ: রাবি ছাত্র কারাগারে

শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণ: রাবি ছাত্র কারাগারে অভিযুক্ত শিক্ষার্থী আশিক উল্লাহ। ছবি: সংগৃহীত
বুধবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনই আশিককে পুলিশের হাতে তুলে দেয় বলে জানান ওসি।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে বহিষ্কার আইন বিভাগের ছাত্র আশিক উল্লাহকে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ।

একই বিভাগের অধ্যাপক বেগম আসমা সিদ্দীকার করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তাকে বুধবার বিকেলে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার আলী তুহিন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের আদালত পরিদর্শক হাসেম আলী জানান, বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালত-৪ এ হাজির করা হয় আশিককে। বিচারক ফয়সাল তারেক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনই আশিককে পুলিশের হাতে তুলে দেয় বলে জানান ওসি।

এজাহারের বরাতে ওসি জানান, ফেসবুকে ‘আশিকনামা’ নামের একটি পেইজ চালান আশিক। তাতে আইন বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে কুৎসা, মানহানিকর ও অশ্লীল পোস্ট দেয়া হয়। এতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা হেয়-প্রতিপন্ন হয়েছেন।

আশিকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়ার আগে বিজ্ঞপ্তি জারি করে তাকে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করে কর্তৃপক্ষ।

বুধবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আশিক একাধিকবার শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাভাবিক পরিবেশের বিঘ্ন ঘটিয়েছেন। বিভিন্ন সময় তিনি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের হত্যার হুমকিও দিয়েছেন। বুধবার আইন বিভাগের ক্লাসরুমে অধ্যাপক ড. বেগম আসমা সিদ্দীকাকে তিনি হেনস্তা করেন।

তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের সুষ্ঠু পরিবেশ, শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে আশিককে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শৃঙ্খলা কমিটি ও সিন্ডিকেটের রিপোর্ট সাপেক্ষে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করা হয়।

এর আগে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে শিক্ষককে হুমকি দেন আশিক। এ সময় তাকে বিভাগের সভাপতির কক্ষে প্রায় দুই ঘণ্টা আটকে রাখেন বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা। পরে বিভাগ থেকে তাকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের হাতে তুলে দেয়া হয়।

এ সময় আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা আশিক উল্লাহকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার, প্রকাশ্যে ভুক্তভোগী শিক্ষকের পায়ে ধরে ক্ষমা চাওয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বাদী হয়ে মামলার দাবি জানান।

শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণ: রাবি ছাত্র কারাগারে
শিক্ষকের সঙ্গে অশোভন আচরণের ঘটনায় বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা


আইন বিভাগ ও শিক্ষার্থী সূত্রে জানা গেছে, বুধবার চতুর্থ বর্ষের ক্লাস চলার সময় ইমপ্রুভমেন্টের কথা বলে ক্লাসে প্রবেশ করেন মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আশিক উল্লাহ। কিন্তু তার কোনো ইমপ্রুভমেন্ট ছিল না। ক্লাসের শেষ দিকে অধ্যাপক বেগম আসমা সিদ্দীকাকে বিব্রত করার জন্য অপ্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করতে থাকেন তিনি।

একপর্যায়ে শিক্ষক ক্লাস থেকে বের হতে গেলে আশিক উল্লাহ দরজা লাগিয়ে তাকে মারার জন্য উদ্যত হন। পরে অন্য শিক্ষার্থীরা তাকে ক্লাসরুমে আটকে রেখে ওই শিক্ষককে রক্ষা করেন।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষক অধ্যাপক বেগম আসমা সিদ্দীকা বলেন, ‘আমি চতুর্থ বর্ষের ক্লাস শেষ করে বের হতে গেলেই সে আমার পথ রোধ করে। ডিপার্টমেন্টের অভ্যন্তরীণ একটি বিষয় নিয়ে আমার কাছে সমাধান চাইলে আমি তাকে চেয়ারম্যান স্যারের সঙ্গে কথা বলতে বলি। কিন্তু সে তা না শুনেই আমার সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে।’

আরও পড়ুন:
শিক্ষক নিপীড়ন: পুলিশের নির্লিপ্ততা নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশ্ন
শিক্ষককে জুতার মালা: প্রধান অভিযুক্ত রনি গ্রেপ্তার
অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা ওসির সামনেই
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যায় জিতু গ্রেপ্তার
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The joint secretary is 72 officers

যুগ্মসচিব হলেন ৮২ কর্মকর্তা

যুগ্মসচিব হলেন ৮২ কর্মকর্তা
মূলত বিসিএস প্রশাসনের ২১ তম ব্যাচে নিয়োগপ্রাপ্তরাই এ পদন্নতি পেয়েছেন। এদের মধ্যে ৭৮ জন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরে কর্মরত আছেন। ৪ জন বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করছেন।

প্রশাসনের উপ সচিব পদ মর্যাদার ৮২ কর্মকর্তাকে পদন্নতি দিয়ে যুগ্মসচিব পদে উন্নিত করেছে সরকার। এ নিয়ে প্রশাসনে এই পদ মর্যাদার কর্মকর্তার সংখ্যা হলো ৭৩২ জন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পদন্নতি পাওয়া এ কর্মকর্তাদের আপাতত কোথাও পদায়ন করা হয়নি। তারা বিশেষ ভারপ্রাপ্তে কর্মকর্তা (ওএমডি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

মূলত বিসিএস প্রশাসনের ২১ তম ব্যাচে নিয়োগপ্রাপ্তরাই এ পদন্নতি পেয়েছেন। এদের মধ্যে ৭৮ জন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরে কর্মরত আছেন। ৪ জন বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করছেন।

পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের তাদের যোগদানপত্র ই-মেইলে ([email protected]) পাঠাতে বলেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

প্রজ্ঞাপনে বিদেশে থাকা কর্মকর্তাদের ক্ষেত্রে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২০১৪ সালের ২৪ মার্চের আদেশ অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তার প্রেষণ পদের বেতনস্কেল উন্নীত করে আদেশ জারি করবে। আদেশ জারির পর পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উন্নীত পদে যোগ দিয়ে যোগদানপত্র নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পাঠাবেন।

পদোন্নতি প্রাপ্ত কর্মকর্তা উন্নীত পদে যোগদানের তারিখ থেকে পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের বেতন-ভাতা পাবেন। তবে বৈদেশিক ভাতা এবং এন্টারটেইনমেন্ট অ্যালাউন্সের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দূতাবাস বা মিশনের নির্ধারিত হার প্রযোজ্য হবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বদলি বা অন্য কোনো কারণে পদ শূন্য হওয়ার আগ পর্যন্ত উন্নীত বেতনস্কেল বহাল থাকবে বলেও প্রজ্ঞাপনে উল্লেথ করা হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The bag was also stolen with a lock on the launch cabin

লঞ্চের কেবিনে তালা দিয়েও ব্যাগ চুরি

লঞ্চের কেবিনে তালা দিয়েও ব্যাগ চুরি ঢাকা ও পটুয়াখালী রুটে চলাচল করা সুন্দরবন লঞ্চ। ছবি: নিউজবাংলা
সুন্দরবন লঞ্চ কোম্পানির মালিক সাইদুর রহমান রিন্টু মিয়া জানিয়েছেন, চুরির ভিডিও ফুটেজটি সদরঘাট নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জকে দেয়া হয়েছে।

ঢাকা থেকে পটুয়াখালীগামী লঞ্চের কেবিন থেকে এক যাত্রীর ব্যাগ চুরি নিয়ে হৈ চৈ শুরু হয়েছে। লঞ্চের সিসি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে এই চুরির ঘটনাটি। বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ঢাকার সদরঘাট থেকে পটুয়াখালীর উদ্দেশে ছেড়ে আসার প্রায় ২০ মিনিট আগে বিলাসবহুল সুন্দরবন-৯ লঞ্চের ২১৯ নং কেবিনে ওই চুরির ঘটনাটি ঘটে।

পটুয়াখালী শহরের কাঠপট্টি এলাকার বিএনএসবি চক্ষু হাসপাতালের সহ-সভাপতি মো. আবু নাইম জানান, তার স্ত্রী ইসমত আরা ঢাকার সদরঘাট থেকে পটুয়াখালী আসার পথে সুন্দরবন-৯ লঞ্চের ২১৯ নম্বর কেবিনে প্রবেশ করে মালামাল রাখেন। পরে কেবিনটি তালা মেরে লঞ্চের দোতলার সামনের অংশে গিয়ে তিনি মেয়ের জামাইকে বিদায় জানান।

মাত্র ১০ থেকে ১২ মিনিট পর কেবিনের তালা খুলে ভেতরে প্রবেশ করে হাতের পার্স (হাত ব্যাগ) না পেয়ে চিৎকার শুরু করেন ইসমত আরা। এক পর্যায়ে তিনি কান্নাকাটি শুরু করলে লঞ্চের সুপারভাইজারসহ অন্যান্য স্টাফ ও যাত্রীরা ঘটনাস্থলে আসেন। তাদের কাছে পুরো বিষয়টি খুলে বলেন ভুক্তভোগী।

স্ত্রীর বরাতে আবু নাইম জানান, ঘটনা শুনে লঞ্চের সুপারভাইজার কেবিনের পাশের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে চুরির বিষয়ে নিশ্চিত হন। চুরি যাওয়া ব্যাগটিতে ২ ভরি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন, নগদ আনুমানিক ৩০ হাজার টাকা, জাতীয় পরিচয়পত্র এবং একটি মোবাইলসহ অন্যান্য কাগজপত্র ছিল।

বুধবার ভোরে ওই লঞ্চটি পটুয়াখালী পৌঁছায়। পরে দুপুরে সুন্দরবন লঞ্চ কোম্পানির মালিক সাইদুর রহমান রিন্টু মিয়া জানান, ভিডিও ফুটেজটি সদরঘাট নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জকে দেয়া হয়েছে। আশা করা হচ্ছে, খুব দ্রুত চুরির সঙ্গে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হবে।

আবু নাইম অভিযোগ করেন, ৭/৮ বছর আগেও তার এক নিকটাত্মীয়ের একটি ব্রিফকেস চুরি হয়েছিল লঞ্চের কেবিন থেকে। কিন্তু সেটির খোঁজ মেলেনি আজও।

তিনি বলেন, ‘আমরা সবসময় এই লঞ্চে আসা যাওয়া করি। লঞ্চের কেবিন বয় কিংবা স্টাফরা জড়িত না থাকলে বাইরের কেউ এভাবে কেবিনের জানালা খুলে চুরি করার সাহস রাখে না।’

তবে এ ঘটনায় লঞ্চের কোনো স্টাফ জড়িত থাকার বিষয়টি অস্বীকার করে সুন্দরবন-৯ লঞ্চের সুপারভাইজার মেহেদি হাসান সুমন বলেন, ‘এটি একটি অনাকাঙ্খিত ঘটনা। কারণ বরিশাল বিভাগে সুন্দরবন লঞ্চ কর্তৃপক্ষ যাত্রীদের সর্বোচ্চ সেবা দেয়। এই চুরির ঘটনা আমাদেরকেও হতবাক করেছে।’

বিষয়টি প্রশাসনকে জানানো হয়েছে বলেও জানান সুপারভাইজার।

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুতে লোকারণ্যের দিন ফাঁকা সদরঘাট
দক্ষিণাঞ্চলের লঞ্চসেবাতেও উন্নতির আশা
তড়িঘড়ি বরিশাল ছেড়েছে ১২ বিলাসবহুল লঞ্চ
দাঁড়ানোর জায়গা নেই লঞ্চে
কেমন আছেন অভিযান-১০ লঞ্চে অগ্নিকাণ্ডে নিখোঁজদের স্বজনরা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Teacher harassment Questions of heroic freedom fighters about the indifference of the police

শিক্ষক নিপীড়ন: পুলিশের নির্লিপ্ততা নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশ্ন

শিক্ষক নিপীড়ন: পুলিশের নির্লিপ্ততা নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশ্ন
সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে আরেক শিক্ষককে পরিকল্পিতভাবে নিগ্রহ করার ঘটনায় উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। সংগঠনটির পক্ষ থেকে দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানানো হয়েছে।

নড়াইলে শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে গলায় জুতার মালা দিয়ে অপদস্থ করার সময় পুলিশের নির্লিপ্ততা ও দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ করেছে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। পুলিশের উপস্থিতিতে এই কাজ আতঙ্কজনক বলে মন্তব্য করেছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠনটি।

বুধবার সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১-এর যুগ্ম প্রচার সম্পাদক মুঈদ হাসান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বলা হয়, ‘সাভারে একজন শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে আরেক শিক্ষককে পরিকল্পিতভাবে নিগ্রহ করার ঘটনায় চরম উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করছে সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। সংগঠনের পক্ষ থেকে দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানানো হচ্ছে।’

সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘এই দুই দুঃখজনক ঘটনা এবং সাম্প্রতিকালের আরও কিছু উদ্বেগজনক উগ্র সাম্প্রদায়িক ঘটনা প্রমাণ করে, যে প্রতিশ্রুতি নিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল সেই রাষ্ট্রের নীতি-নৈতিকতা আজ কতটা বিপন্নের মুখোমুখি। এসব ঘটনা আরও প্রমাণ করে যে, বাংলাদেশকে কোনো মহল পরিকল্পিতভাবে অন্ধকারের দিকে ধাবিত করছে।

‘আরও উদ্বেগজনক যে, নড়া‌ইলে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোর চরম অমানবিক ঘটনাটি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু সদস্যের উপস্থিতিতে ঘটেছে। অন্যদিকে একজন ছাত্রের বর্বরতায় প্রাণ হারিয়েছেন আরেক শিক্ষক।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘পালাক্রমিক এসব ঘটনা মুক্তিযুদ্ধবিরোধী উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তির সুচতুর ও পরিকল্পিত অপচেষ্টা। অনেক ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নির্লিপ্ততা ও দায়িত্বে অবহেলা আরও বেশি আতঙ্কজনক, যা উগ্র সাম্প্রদায়িক ও অনৈতিক শক্তিকে উৎসাহিত করবে। ‘সব ধর্মের সহাবস্থান ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার স্বার্থে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

‘আশুলিয়ায় শিক্ষক হত্যা ও নড়াইলে কলেজ অধ্যক্ষ নিগ্রহের ঘটনার দ্রুত সরকারি পদক্ষেপ দাবি করছি। একইসঙ্গে দোষীদের অবিলম্বে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন যেসব বীর মুক্তিযোদ্ধা

সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের নির্বাহী সভাপতি মো. নুরুল আলম, সহ-সভাপতি ম. হামিদ ও অধ্যাপক ডা. আমজাদ হোসেন, মহাসচিব হারুন হাবীব, যুগ্ম-মহাসচিব আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী, আব্দুল মাবুদ ও শাহজাহান মুখ্য বেনু, সাংগঠনিক সম্পাদক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী সিকদার (অব.), কোষাধ্যক্ষ ডা. মনসুর আহমদ, কেন্দ্রীয় নারী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক লায়লা হাসান ও ইফফাত আরা নার্গীস, সাংস্কৃতিক সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস লাকি, বরিশাল বিভাগীয় সভাপতি প্রদীপ কুমার ঘোষ, খুলনার বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক খয়রাত হোসেন, রাজশাহীর বিভাগীয় সভাপতি আবুল হাসান খন্দকার এবং কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় সদস্য সচিব বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার।

আরও পড়ুন:
শিক্ষককে জুতার মালা: প্রধান অভিযুক্ত রনি গ্রেপ্তার
অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা ওসির সামনেই
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যায় জিতু গ্রেপ্তার
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ
শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

মন্তব্য

p
উপরে