× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Beating Radhab That market is still unusual
hear-news
player
google_news print-icon

র‍্যাবকে মারধর: এখনও অস্বাভাবিক সেই বাজার

র‍্যাবকে-মারধর-এখনও-অস্বাভাবিক-সেই-বাজার
ঘটনার পর থেকে এখনও থমথমে বারৈয়ারহাট বাজার।
শনিবার দুপুর থেকে বারৈয়ারহাট পৌর বাজার এলাকায় একাধিক ব্যবসায়ী ও স্থানীয় মানুষের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা। এ সময় কেউই নিজের নাম প্রকাশ করে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

‘গোয়েন্দা তথ্য সংগ্রহে’ গিয়ে গত ২৫ মে মিরসরাইয়ের বারৈয়ারহাট বাজারে এক সহযোগীসহ দুই র‌্যাব সদস্যের ওপর হামলা ও মারধরের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার তিন দিন কেটে গেলেও বারৈয়ারহাট পৌর বাজার এলাকায় এখনও আতঙ্ক কাটেনি।

ঘটনার পরদিন আতঙ্কিত ওই বাজারের প্রায় সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানই বন্ধ ছিল। পরিস্থিতি এখনও অস্বাভাবিক। শনিবার গুটিকয়েক প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও অধিকাংশই বন্ধ থাকতে দেখা গেছে।

ডাকাত সন্দেহে সাদা পোশাকে থাকা র‍্যাবের দুই সদস্যের ওপর মাদক ব্যবসায়ীরা হামলা চালিয়েছে বলে র‍্যাবের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। এ ঘটনায় শুক্রবার র‍্যাবের পক্ষ থেকে তিনটি মামলা হয়। মামলাগুলোতে আসামি হিসেবে ১৭ জনের নাম উল্লেখ করা হলেও অজ্ঞাতপরিচয় আরও ৬০-৭০ জনকে আসামি করা হয়েছে। মামলাগুলোতে এখন পর্যন্ত মাত্র ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলেও জানিয়েছে র‍্যাব। তাই বাজারজুড়ে সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার আতঙ্ক বিরাজ করছে ব্যবসায়ীসহ স্থানীয় তরুণদের মধ্যে।

শনিবার দুপুর থেকে বারৈয়ারহাট পৌর বাজার এলাকায় একাধিক ব্যবসায়ী ও স্থানীয় মানুষের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা। এ সময় কেউই নিজের নাম প্রকাশ করে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি। তারা জানান, সেদিনের ঘটনার আকস্মিকতায় সবাই বিস্মিত। এত বড় একটি ঘটনা ঘটে যাবে, কেউ চিন্তাও করেনি। অনেকেই সেদিন না বুঝে শুধু হুজুগের বশে সেই ঘটনায় জড়িয়ে গেছে। তারাই এখন সবচেয়ে বেশি আতঙ্কে। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি এখনও থমথমে।

র‍্যাবকে মারধর: এখনও অস্বাভাবিক সেই বাজার
ঘটনার তিন দিন পর শনিবারও বাজারের বেশির ভাগ দোকান বন্ধ ছিল, মানুষের আনাগোনাও কম

কামরুল ইসলাম নামে স্থানীয় এক সংবাদকর্মী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এখনও অধিকাংশই বন্ধ। ওই ঘটনা নিয়ে স্থানীয়রা কথা বলতেও নারাজ। যারা গ্রেপ্তার হয়েছে, তাদের স্বজনরাও পর্যন্ত আত্মপক্ষ সমর্থন করে কিছু বলছে না। এলাকায় এর আগে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে এমন ঘটনার নজির নেই। স্থানীয়দের মধ্যে তাই গ্রেপ্তার আতঙ্ক ও ভয় কাজ করছে।’

বারৈয়ারহাট পৌর বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক হেদায়েত উল্যাহও ব্যবসায়ীদের মধ্যে এমন আতঙ্কের আভাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘ঘটনার সাথে ব্যবসায়ীরা জড়িত না। কিন্তু র‍্যাব জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যেতে পারে এই ভয়ে কেউ দোকানপাট খুলছে না। আবার যারা গ্রেপ্তার হয়েছে, তাদের অনেক স্বজন এই বাজারের ব্যবসায়ী। তারাও ভয়ে আছেন। স্থানীয় মানুষও বাজারে আসা কমিয়ে দিয়েছে।’

হেদায়েত উল্যাহ জানান, ওই বাজারে ৫ বছর আগে বোমা ফাটিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে স্বর্ণের দোকানে ডাকাতির ঘটনা ঘটেছিল। তখন থেকেই স্থানীয়দের মধ্যে এক ধরনের ডাকাতের ভীতি আছে। তাই ঘটনার সময় ওই দুই র‌্যাব সদস্যকে অনেকে ডাকাতই ভেবেছিল।

তিনি আরও জানান, শনিবার র‍্যাবসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বারৈয়ারহাট বাজারের ব্যবসায়ীদের বৈঠক হয়েছে। হামলার ঘটনায় ব্যবসায়ীদের কোনো হয়রানি করা হবে না বলে আশ্বাস দেয়া হয়েছে। তবে খোয়া যাওয়া অস্ত্র উদ্ধারে ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চেয়েছে র‍্যাব।

এদিকে ওই হামলার ঘটনার পর থেকে বারৈয়ারহাট পৌর বাজারসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশ ও র‌্যাব সদস্যদের আনাগোনা বেড়েছে। তবে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে বারৈয়ারহাট পৌরসভার উদ্যোগে শনিবার একটি শান্তি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১টায় হিঙ্গুলী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের পাশে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, পুলিশ কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী নেতা ও সাধারণ মানুষ অংশ নেন।

র‍্যাবকে মারধর: এখনও অস্বাভাবিক সেই বাজার
পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে অনুষ্ঠিত হয়েছে শান্তি সমাবেশ

সমাবেশে র‍্যাব সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনাটিকে অনাকাঙ্ক্ষিত ও ভুল বোঝাবুঝি হিসেবে উল্লেখ করা হয়। ওই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে ভবিষ্যতে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটাতে সবাইকে সচেতন থাকারও আহ্বান জানানো হয়।

এ সময় বারৈয়ারহাট পৌরসভার মেয়র রেজাউল করিম বলেন, ‘গত ২৫ মে পৌর সদরে র‍্যাব সদস্যদের ওপর না বুঝে ডাকাত সন্দেহে যে হামলা হয়েছে, তার জন্য আমরা অনুতপ্ত। আমরা চাই এ ঘটনার সঙ্গে যারা যুক্ত তদন্ত করে তাদের বের করা হোক। এ ঘটনায় নিরীহ কোনো মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হন, সে বিষয়টি খেয়াল রাখতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে অনুরোধ করছি।’

জোরারগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নুর হোসেন মামুন বলেন, ‘মাদকবিরোধী অভিযানের সময় র‍্যাব সদস্যদের ওপর হামলার ঘটনা পরিষ্কার অপরাধ। আইন হাতে তুলে নেয়ার সুযোগ নেই কারও।’

তিনি আরও বলেন, ‘ওই দিন র‍্যাব সদস্যদের দুটি অস্ত্র হারিয়ে গেছে। অভিযান চালিয়ে ইতোমধ্যে একটি উদ্ধার করা গেছে। বুঝে বা না বুঝে অপর অস্ত্রটি যে বা যারা নিয়েছেন বিলম্ব না করে সেটি আমাদের দিয়ে যাবেন। এটি সরকারি সম্পদ। স্বেচ্ছায় এ অস্ত্র জমা না দিলে আমরা কঠোর হতে বাধ্য হব।’

আরও পড়ুন:
মানিকগঞ্জে গুলিতে আহত ২ র‍্যাব সদস্য
‘অস্ত্র ব্যবসায়ী’ গ্রেপ্তার, পিস্তল-গুলি জব্দ
মেডিক্যালে সুযোগ পাওয়া দরিদ্র মারুফার পাশে র‌্যাব
মাদক কারবারিদের সঙ্গে গোলাগুলি, র‌্যাব সদস্যসহ গুলিবিদ্ধ ৪
নারায়ণগঞ্জে ‘শ্যুটার রিয়াজ’ গ্রেপ্তার

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
BNP went to court for Shaons murder

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি মুন্সীগঞ্জের সংঘর্ষে নিহত যুবদলকর্মী শহীদুল ইসলাম শাওন। ছবি: সংগৃহীত
বাদী সালাহ্ উদ্দিন খান বলেন, ‘বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে আমি মামলার বাদী হয়েছি। নিহতের পরিবারের সদস্যরা ভয় পেয়ে মামলা করেননি, তারা পরে এ মামলার সঙ্গে যুক্ত হবেন।’

পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের সময় যুবদল কর্মী শহীদুল ইসলাম শাওনের মৃত্যুর ঘটনায় বিচার চেয়ে মুন্সীগঞ্জের আদালতে আবেদন জমা দিয়েছে বিএনপি। পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করে হত্যা মামলা নিতে এ আবেদন করা হয়।

মুন্সীগঞ্জ আমলী আদালত-১ এর বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মোসাম্মৎ রহিমা আক্তার এ বিষয়ে শুনানি ও আদেশের জন্য ১০ অক্টোবর দিন ঠিক করেছেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে এ মামলা বলে দাবি করেছেন বাদী মো. সালাহ্ উদ্দিন খান।

শাওন হত্যায় আদালতে গেল বিএনপি
মুন্সীগঞ্জের আমলী আদালতে আবেদন জমা দিয়েছে বিএনপি। ছবি: নিউজবাংলা

গত ২১ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর পুরাতন ফেরীঘাট এলাকায় পুলিশ ও বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ঘণ্টাব্যাপী সংঘর্ষ হয়। এতে সাংবাদিক ও পুলিশসহ অন্তত ৫০ জন আহত হন। পরদিন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান যুবদল কর্মী শহীদুল ইসলাম শাওন। তিনি পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছেন বলে দাবি করে আসছেন স্বজন ও বিএনপি নেতারা। অন্যদিকে পুলিশের দাবি, শাওনের মৃত্যু হয়েছে ইটের আঘাতে।

সংঘর্ষের এ ঘটনায় সদর থানার এসআই মাঈনউদ্দিন ও শ্রমিকলীগ নেতা আব্দুল মালেক বাদী হয়ে দুটি মামলা করেন। এতে বিএনপির দেড় সহস্রাধিক নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়।

শাওনের মৃত্যুর ঘটনায় এবার পুলিশ ও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দায়ী করে বৃহস্পতিবার আদালতে অভিযোগ জমা দেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের মামলা ও তথ্য সংরক্ষন কর্মকর্তা মো. সালাহ্ উদ্দিন খান। তিনি কেন্দ্রীয় কৃষক দলের নির্বাহী সদস্য হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন।

মুন্সীগঞ্জ আমলী আদালতে দেয়া অভিযোগে আসামি করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মিনহাজ-উ-ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও অর্থ) সুমন দেব, সদর থানার ওসি তারিকুজ্জামানসহ পুলিশের ৯ সদস্যকে। এছাড়াও ৪০-৫০ জন পুলিশ সদস্য ও সরকার দলীয় ২০০-৩০০ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে শাওন হত্যায়।

জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কেন্দ্রীয় সদস্য অ্যাডভোকেট মাহবুবুর রহমান খান আল-মামুন বলেন, ‘২১ সেপ্টেম্বর মুন্সীগঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীদের সমাবেশ চলছিল। শান্তিপূর্ণ সমাবেশে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মিনহাজ-উল-ইসলাম ঢুকে খালেদা জিয়া ও জিয়াউর রহমানের ছবি সম্বলিত ব্যানার কেড়ে নেন। তিনি পা দিয়ে ব্যানার মাড়ান এবং পুলিশ নেতাকর্মীদের উপর হামলা করে। তখন শাওনের কপালের ডান দিকে গুলি করা হয়।’

বাদী সালাহ্ উদ্দিন খান বলেন, ‘বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে আমি মামলার বাদী হয়েছি। নিহতের পরিবারের সদস্যরা ভয় পেয়ে মামলা করেননি, তারা পরে এ মামলার সঙ্গে যুক্ত হবেন।’

আরও পড়ুন:
কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড
বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  
৯৬-এর আলোকে তত্ত্বাবধায়কের রূপরেখা করছে বিএনপি
কেবল বিদ্যুৎ নয়, সব কিছুতেই জাতি বিপর্যয়ে: ফখরুল
খুলনায় বিএনপির গণসমাবেশ ২২ অক্টোবর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Hilsa fishing has been stopped in Padma Meghna from today

পদ্মা-মেঘনায় আজ থেকে ইলিশ ধরা বন্ধ

পদ্মা-মেঘনায় আজ থেকে ইলিশ ধরা বন্ধ ইলিশ শিকার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় শাখা নদীতে জাল ও নৌকা ভিড়িয়ে রেখেছে জেলেরা। ছবি: নিউজবাংলা
চাঁদপুরে পদ্মা ও মেঘনা নদীর ৭০ কিলোমিটার এলাকাকে ইলিশের অভয়াশ্রম ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত টানা ২২ দিন এখানে ইলিশ শিকার বন্ধ ঘোষণা করেছে সরকার। এ সময়কালে মাছ আহরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও পরিবহন বন্ধ থাকবে।

চাঁদপুরের পদ্মা-মেঘনা নদীর অভয়াশ্রম এলাকায় বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে ইলিশ শিকার বন্ধ হয়ে গেছে। পদ্মা-মেঘনার ৭০ কিলোমিটার জুড়ে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত টানা ২২ দিন ইলিশ শিকার বন্ধ থাকবে। এ সময়কালে মাছ আহরণ, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও পরিবহন বন্ধ থাকবে।

মাছ ধরা থেকে বিরত থাকার জন্য চাঁদপুর জেলার ৪৪ হাজার ৩৫ জন জেলেকে খাদ্য সহায়তা হিসেবে ২০ কেজি চাল দেয়া হবে।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল থেকে হাইমচর উপজেলার চরভৈরবী পর্যন্ত পদ্মা ও মেঘনা নদীর প্রায় ৭০ কিলোমিটার জুড়ে ইলিশ শিকার বন্ধ থাকবে। এই সময়ে নদীতে জেলা প্রশাসন, জেলা মৎস্য বিভাগ, কোস্টগার্ড ও নৌ পুলিশ পৃথকভাবে অভিযান পরিচালনা করবে।

চাঁদপুর নৌ থানার ওসি মো. কামরুজ্জামান জানান, ইলিশ প্রজনন রক্ষায় ২২ দিনের এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করতে তৎপর নৌ পুলিশ। আমাদের থানা পুলিশ ছাড়াও এ বছর অভয়াশ্রম এলাকায় নৌ পুলিশের সদস্যরা নদীতে টহলে দেবেন।’

চাঁদপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান জানান, ইলিশ প্রজনন রক্ষায় সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে ইতোমধ্যে জেলা টাস্কফোর্সের সভা হয়েছে। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে কেউ নদীতে ইলিশ শিকার করলে এক থেকে সর্বোচ্চ দুই বছরের কারাদণ্ড, ৫ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের ইলিশ গবেষক ড. আনিসুর রহমান বলেন, ‘ইলিশ সাগরের মাছ হলেও ডিম ছাড়ার সময়ে উপকূলীয় মোহনার নদ-নদী ও পদ্মা-মেঘনায় চলে আসে।

‘অক্টোবর মাসের আশ্বিন কিংবা অমাবস্যার সময়টাকে ইলিশ প্রজননের জন্য বেছে নিয়ে থাকে। ২২ দিনের এই নিষেধাজ্ঞার সময়ে মা ইলিশ নিরাপদভাবে ডিম ছেড়ে যেতে পারলে কাঙ্ক্ষিত ইলিশ উৎপাদন বজায় থাকবে। তাতে করে ইলিশের উৎপাদন বাড়বে ৬ লাখ টন।’

আরও পড়ুন:
৭ অক্টোবর থেকে ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা
ভারতে ইলিশ রপ্তানি বন্ধে আইনি নোটিশ
বাংলাদেশের উপহারের ইলিশের দাম কত কলকাতার বাজারে
বাংলাদেশের উপহারের ইলিশ ভারতের বাজারে মঙ্গলবার
দুর্গাপূজার প্রথম চালানে ভারত গেল ১৬ টন ইলিশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Pre paid gas meters are sitting in Sylhet

সিলেটে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার, অবশেষে চুক্তি

সিলেটে গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার, অবশেষে চুক্তি জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেড ভবন। ছবি: নিউজবাংলা
বর্তমানে জালালাবাদ গ্যাসের ৩ লাখ আবাসিক গ্রাহক। প্রথম অবস্থায় ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও এই মিটারের আওতায় নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

সিলেটে গ্যাসের আবাসিক গ্রাহকদের প্রি-পেইড মিটারের দরপত্র আহ্বানের প্রায় এক বছর পর চীনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে।

দি কনসোর্টিয়াম অব জেনার মিটারিং টেকনোলজি (সাংহাই) লিমিটেড ও হেক্সিং ইলেকট্রিক্যাল কোম্পানি লিমিটেড, চায়নার সঙ্গে গত সপ্তাহে চুক্তি করেছে জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেডের (জেজিটিডিএসএল)।

এই প্রকল্পের মাধ্যমে জেজিটিডিএসএলের গৃহস্থালি পর্যায়ের ৫০ হাজার গ্রাহক প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আসবেন। এতে গ্যাসের অপচয় রোধের পাশাপাশি গ্রাহকরা অতিরিক্ত বিল দেয়া থেকে রেহাই পাবেন বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

প্রাথমিক অবস্থায় সিলেটের ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে।

প্রথম ডিপিপি অনুযায়ী চলতি বছরের নভেম্বরে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হওয়ার কথা ছিল। মার্চের মধ্যে কাজ শুরু হওয়ার কথা। তবে ডিপিপি সংশোধন করে গত মার্চে নতুন করে দরপত্র আহ্বান করে জালালাবাদ গ্যাস। এতে প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৩ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত করা হয়েছে। এখনও শুরু না হওয়ায় এই সময়ের মধ্যেও কাজ শেষ হওয়া নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

দেরিতে চুক্তি সম্পর্কে এই প্রকল্পের পরিচালক লিটন চন্দ্র নন্দী বলেন, ‘২০১৯ সালে এ ব্যাপারে একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) মন্ত্রণালয়ে জমা দেয় জালালাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ। ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্প অনুমেদন হয়। এরপর দরপত্র আহ্বান করা হলেও উপযুক্ত দরদাতা পাওয়া যাচ্ছিল না। এছাড়া প্রকল্পের প্রস্তাবিত ব্যয়েও কিছু অসামাঞ্জস্য ছিল। তাই ডিপিপি সংশোধন করে চলতি বছরে আবার দরপ্রত্র আহ্বান করা হয়।’

এই প্রকল্পে ১২০ কোটি টাকা ব্যয় হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘চুক্তির পর জরিপ কাজ শুরু হয়ে গেছে। চলতি বছরেই মাঠ পর্যায়ের কাজও শুরু হবে। আশা করছি, নির্ধারিত সময়েই কাজ শেষ করা যাবে।’

তিনি জানান, গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের মাধ্যমে একদিকে যেমন গ্যাসের অপচয় রোধ হবে, অন্যদিকে গ্রাহকের প্রতি মাসের খরচও কমবে। দুই চুলার গ্যাসের জন্য এখন প্রতি মাসে গ্রাহক এক হাজার টাকার ওপর বিল দিচ্ছেন। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে ছোট পরিবারের এক হাজার টাকায় তিন মাস গ্যাস ব্যবহার করতে পারবে। মাসে তার খরচ পড়বে ৩০০ টাকার মতো। এছাড়া গৃহস্থালি পর্যায়ে প্রি-পেইড গ্যাস মিটার ব্যবহারের মাধ্যমে গ্রাহকদের মধ্যে গ্যাস ব্যবহারে সচেতনতা, কোম্পানির ব্যবস্থাপনা দক্ষতা বৃদ্ধি এবং মনিটরিং ব্যয়ও কমবে।

প্রকল্প পরিচালক জানান, মিটারের মূল্য মাসিক ভাড়া হিসেবে সমন্বয় করা হবে। কাছাকাছি রিচার্জ পয়েন্ট থেকে স্মার্ট কার্ডের মাধ্যমে ক্রেডিট কিনে প্রি-পেইড মিটার রিচার্জ করা যাবে। রিচার্জ শেষ হলেও এতে ইমার্জেন্সি ব্যালেন্সের সুবিধা থাকবে।

তিনি জানান, ঢাকা ও চট্টগ্রামে প্রি-পেইড গ্যাস মিটার থাকলেও সিলেটে প্রথমবারের মতো চালু করা হচ্ছে এ পদ্ধতি।

জেজিটিডিএসএল ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী শোয়েব আহমদ মতিন জানান, প্রথমে নগরের শাহজালাল ও হাউজিং এস্টেট আবাসিক এলাকায় পাইলট ভিত্তিতে প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। কারণ সরকারি মালিকানাধীন এই দুই আবাসিক এলাকা পরিকল্পিতভাবে গড়ে উঠেছে। এখানে কাজ করা সহজ হবে।

তিনি বলেন, ‘২০২১ সালের শুরুতে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর মিটার স্থাপনের জন্য অবশেষে চায়না কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হল।’

তিনি আরও জানান, অনেকে ম্যাচের কাঠি বাঁচাতে অপ্রয়োজনে গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখেন। প্রি-পেইড মিটার যুক্ত হলে তারা এ কাজ থেকে বিরত থাকবেন। অনেক গ্রাহক আছেন, সারা মাস গ্যাস ব্যবহার না করলেও মাস শেষে নির্ধারিত বিল পরিশোধ করতে হয়। তাদের আর গ্যাস না জ্বালালে বিল দিতে হবে না। যতটুকু গ্যাস ব্যবহার করবেন কেবল ততটুকুর বিল দিতে হবে।

জেজিটিডিএসএল কর্মকর্তারা জানান, এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে প্রতিটি আবাসিক গ্রাহকের মাসিক গড় গ্যাস ব্যবহার ৬৬ ঘনমিটার থেকে ৪০ ঘনমিটারে নেমে আসবে। ফলে গ্রাহকপ্রতি গ্যাস সাশ্রয় হবে গড়ে ২৬ ঘনমিটার। গ্যাস বিতরণ লাইন লিকেজজনিত অপচয়ও রোধ হবে।

বর্তমানে জালালাবাদ গ্যাসের ৩ লাখ আবাসিক গ্রাহক। প্রথম অবস্থায় ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আনা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও এই মিটারের আওতায় নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ ব্যাপারে হেক্সিং ইলেকট্রিক্যালের রিজিওনাল সিইও লিও জু বলেন, ‘বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডসহ এদেশে অনেক প্রকল্পে প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে আমাদের। আমরা ১৪ বছর ধরে এ কাজে নিয়োজিত। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই জালালাবাদ গ্যাসের প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের কাজ শেষ করতে পারবো বলে আশাবাদী।’

আরও পড়ুন:
গ্রিন টাউন এলপি গ্যাস ও টি কে গ্যাস সিলিন্ডারের চুক্তি
বিদ্যুৎ গ্যাস পানি এখন রাজনৈতিক পণ্য: আমীর খসরু
এবার লাটভিয়ায় গ্যাস বন্ধ রাশিয়ার
গ্যাস-বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন করার আইন বাতিল চান ব্যবসায়ীরা
ইউরোপে রুশ গ্যাস পাওয়া নিয়ে নতুন শঙ্কা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
SI in jail in Domar rape case

ডোমারে ধর্ষণ মামলায় এসআই কারাগারে

ডোমারে ধর্ষণ মামলায় এসআই কারাগারে এসআই মহাবীর ব্যানার্জী। ছবি: সংগৃহীত
নীলফামারীর ডোমার থানার থানার ওসি মাহমুদ উন নবী জানান, মামলার আসামি মহাবীর ব্যানার্জীকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। আর ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়েছে।

নীলফামারীতে ধর্ষণের অভিযোগে পুলিশের এক উপ-পরিদর্শকের (এসআই) বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। উপজেলা শহরের এক বাসিন্দা বৃহস্পতিবার বিকেলে ডোমার থানায় মামলাটি করেন।

মামলার আসামি ডোমার থানার সাবেক এসআই মহাবীর ব্যানার্জীকে সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করে পুলিশ। তিনি দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার কেউটপাড়ার কালী মোহন ব্যানার্জীর ছেলে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, স্বামী-স্ত্রী বনিবনা না হওয়ায় এক বছর আগে স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছিলেন (জিডি) ওই নারী। ওই অভিযোগ তদন্তের দায়িত্ব পান সে সময়ে ডোমার থানায় থাকা এসআই মহাবীর। তদন্তের সুবাদে ওই নারীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন তিনি।

ছয় মাস আগে ডোমার থানা থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা র‌্যাবে বদলি হন মহাবীর ব্যানার্জী। তবে বদলির পরও মোবাইল ফোনে যোগাযোগ অব্যাহত ছিলো তাদের। এক পর্যায়ে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৫ অক্টোবর বুধবার রাতে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগ নিয়ে ওই নারীকে ধর্ষণ করেন মহাবীর। বিষয়টি বুঝতে পেরে স্থানীয়রা তাকে আটক করেন।

ধর্ষণের শিকার ওই নারী জানান, এর আগে ২৮ সেপ্টেম্বর রাতে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করেন মহাবীর ব্যানার্জী। বুধবার রাতের ওই ঘটনার পর স্থানীয় জনপ্রতিনিধির উপস্থিতিতে সালিস মিমাংসার উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু মহাবীর ওই নারীকে বিয়ে করতে রাজি হননি। এ অবস্থায় বৃহস্পতিবার এসআই মহাবীরকে আসামি করে থানায় মামলা করতে হয়েছে।

ডোমার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুম আহমেদ বলেন, ‘পৌরসভার কাউন্সিলরের মাধ্যমে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। দুজনের কথাবার্তায় মনে হয়েছে তাদের মধ্যে একটা সম্পর্ক ছিল। গতকাল (বুধবার) রাতে পুলিশ কর্মকর্তাকে ওই নারীর নিকটাত্মীয়রা আটক করেন। কিন্তু এসআই মহাবীরের কোনো অভিভাবক না আসায় তাদের পুলিশে সোপর্দ করা হয়।

এ ব্যাপারে ডোমার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহমুদ উন নবী জানান, মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আসামি মহাবীরকে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। আর ডাক্তারি পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য মেয়েটিকে ডোমার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়েছে।

কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক মোমিনুল ইসলাম মোমিন বলেন, ‘এসআই মহাবীর ব্যানার্জীকে সন্ধ্যায় আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
কক্ষে আটকে কিশোরীকে ধর্ষণের অভিযোগ, নির্যাতন আরেক শিশুকে
দেশে প্রতি মাসে ধর্ষণের শিকার ৭১ কন্যাশিশু
সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা
‘ধর্ষণের পর ১০ তলা থেকে ফেলে হত্যা’, মরদেহ উত্তোলন
দিয়াবাড়ির কাশবনে তরুণীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Threatening to take off clothes of women who come to deposit money

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি

টাকা জমা দিতে আসা নারীর কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি ডাকঘরের রানার হিসেবে কর্মরত সুমন আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা
অভিযোগ স্বীকার করে নিয়ে সুমন আহমেদ বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।…উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

গাজীপুর পোস্ট অফিসে ডাক জীবন বিমার টাকা জমা দিতে গিয়ে আউটসোর্সিং কর্মীর মাধ্যমে লাঞ্ছিত হয়েছেন এক নারী। এ সময় ওই নারীর কাপড় খুলে নেয়ারও হুমকি দেয়া হয়।

বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের প্রধান ডাকঘরে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত সুমন আহমেদ প্রায় আড়াই বছর ধরে ডাকঘরের আউটসোর্সিং কর্মী (রানার) হিসেবে কর্মরত। সেই নারীর অভিযোগের পর তিনি তা স্বীকারও করেছেন। বলেছেন, উত্তেজিত হয়ে এই কথা বলে ফেলেছেন।

শহরের বাসিন্দা মধ্য বয়সী এক নারী বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডাক জীবন বিমার কিস্তির টাকা জমা দিতে শহরের রাজবাড়ি সড়কের প্রধান ডাকঘরে যান। সেখানে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করেও টাকা জমা দিতে না পেরে পোস্টাল অপারেটর আয়েশা বেগমের দ্বারস্থ হন।

আয়েশা ওই নারীকে আউট সোর্সিং কর্মী (রানার) সুমন আহমেদের কাছে পাঠান। কিন্তু সুমনও তাকে দীর্ঘক্ষণ দাঁড় করিয়ে রাখেন।

পরে ওই নারী তার কাজটি দ্রুত করে দেয়ার অনুরোধ করলে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন সুমন। এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে তর্ক বাঁধে। এক পর্যায়ে সুমন কিস্তি জমা দিতে আসা ওই নারীকে অশ্রাব্য ভাষায় গালিগালাজ করে পরনের কাপড় খুলে নেয়ার হুমকি এবং মারার জন্য তেড়ে যান।

ওই নারীকে সেখানে বেশ কিছুক্ষণ অবরুদ্ধও করে রাখা হয়। প্রায় এক ঘণ্টা এমন অবস্থা চলাকালে বিভিন্ন সেবা নিতে ডাকঘরে আসা লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

একাধিক সেবা প্রার্থী অভিযোগ করে বলেন, এ ডাকঘরে সেবা পেতে দুর্ব্যবহারসহ মানুষকে নানা হয়রানি পোহাতে হয়।

সুমন বলেন, ‘হাতে কাজ থাকায় সেবা নিতে আসা ওই নারীকে অপেক্ষা করতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি অপেক্ষা না করে আমার সঙ্গে খারাপ আচরণ করায় রেগে গিয়ে কাপড় খুলে নেয়ার কথা বলেছিলাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘উত্তেজিত হয়ে আমি বাজে কথা বলেছি। মানুষ রাগের মাথায় অনেক কিছুই বলে। আমার এভাবে কথা বলা ঠিক হয়নি, আমার ভুল হয়েছে।’

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সহকারী পোস্ট মাস্টার ইব্রাহিম খলিল বলেন, ‘আউটসোর্সিং কর্মী সুমন স্টাফদের সঙ্গেও খারাপ আচরণ করে। আমাদের ক্ষমতা নেই তাকে বাদ দেয়ার, তাকে ওপর মহল থেকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

পোস্ট মাস্টার খন্দকার নূর কুতুবুল আলম জানান, ঘটনার সময় তিনি ব্যাংকে ছিলেন। পরে সব জেনে বলেন, ‘নারীর সঙ্গে করা আচরণ শোভন হয়নি। তার বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে ঘটনাটি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানানো হবে।’

তিনি জানান, সুমন আহমেদের নিয়োগ রানার পদে। জনবল সংকটের কারণে তাকে দিয়ে কিছু অফিসিয়াল কাজ করানো হয়।

আরও পড়ুন:
গাজীপুরে হামলায় ছাত্রলীগের ১১ জন আহত, প্রতিবাদে বিক্ষোভ অবরোধ
সবচেয়ে দূষিত বায়ু গাজীপুরে, কম মাদারীপুরে
অপহরণের ৯ ঘণ্টা পর শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rajasthani horse for Bangladesh Police

বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  

বাংলাদেশ পুলিশের জন্য রাজস্থানি ঘোড়া  
বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘোড়াগুলো ৮৩ হাজার ৩৪০ মার্কিন ডলারে আমদানি করা হয়েছে; বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৮৯ লাখ টাকা

ভারত থেকে ৬টি প্রশিক্ষিত ঘোড়া আমদানি করেছে বাংলাদেশ পুলিশ। বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঘোড়াগুলো আনা হয়।

‘মাধ্যম’ নামে একটি সিএন্ডএফ এজেন্ট ঘোড়াগুলোকে ছাড় নেয়ার দায়িত্বে ছিল। রপ্তানি প্রতিষ্ঠান জে কে এন্টারপ্রাইজ কলকাতা।

এসব নিশ্চিত করেছেন সিএন্ডএফ মাধ্যম এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি এবং সিএন্ডএফ স্টাফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক সাজেদুর রহমান।

বেনাপোল স্থলবন্দরের উপপরিচালক (ট্রাফিক) মনিরুল ইসলাম জানান, ঘোড়াগুলো ৮৩ হাজার ৩৪০ মার্কিন ডলারে আমদানি করা হয়েছে; বাংলাদেশি মুদ্রায় যা প্রায় ৮৯ লাখ টাকা।

‘পুলিশের জন্য আমদানি করা ঘোড়াগুলো দ্রুত খালাসের জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ ঘোড়াগুলো রক্ষণাবেক্ষণের তদারকি করছে।’

সিএন্ডএফ এজেন্ট মেসার্স মাধ্যম এন্টারপ্রাইজের প্রতিনিধি সাজেদুর রহমান বলেন, ‘ভারতের রাজস্থান থেকে ৬টি( মাড়োয়ারি) হর্স ক্যারেজ কিনেছে বাংলাদেশ পুলিশ। ঘোড়াগুলো খালাস করার পর বেনাপোল বন্দর থেকে ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনে নেয়া হবে।’

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামাল হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমদানি ঘোড়া দ্রুত খালাসের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
যুবদল কর্মী শাওনের দাফন
পুলিশের ক্ষমতা দেখিয়ে সাবেক সেনাসদস্যের ফ্ল্যাট দখলের চেষ্টা
সশস্ত্র মিছিল ও হামলায় ছাত্রলীগ, মামলা বিএনপির বিরুদ্ধে
‘ভুল চিকিৎসা’য় প্রসূতির মৃত্যুর জেরে সংঘর্ষ
মুন্সীগঞ্জে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত যুবদল কর্মীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP meeting in Kondale

কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড

কোন্দলে বিএনপির সভা পণ্ড নালিতাবাড়ীতে অন্তকোন্দলে বিএনপির পরিচিতি সভা পণ্ড করে দিয়েছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
নালিতাবাড়ী থানার ওসি এমদাদুল হক বলেন, ‘বিএনপির দুই গ্রুপ একই স্থানে সভা ডাকায় গন্ডগোলের শঙ্কা দেখা দেয়। একারণে সেখানে সভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া মধুটিলা ইকোপার্ক বিনোদনের স্থান, সেখানে সভা-সমাবেশ করা ঠিক না।’

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে অন্তকোন্দলে সংঘর্ষের শঙ্কায় বিএনপির সভা পণ্ড করে দিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে উপজেলার মধুটিলা ইকোপার্কে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপি পরিচিতি সভা ডাকে। একই স্থানে শ্রমিকদল সভা আহ্বান করায় সংঘর্ষের শঙ্কায় সব কর্মসূচি বন্ধ করা হয়েছে।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি নালিতাবাড়ী উপজেলার পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি করা হয়। বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই কমিটির পরিচিতি সভা করার জন্য ইউনিয়ন বিএনপি চিঠি বিতরণ করে।

চিঠিতে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন শ্রমিকদলের নেতাদের নাম না থাকায় ক্ষুব্ধ হয়ে তারাও শ্রমিকদলের কমিটি পুনর্গঠনের জন্য একই স্থানে সভা ডেকে চিঠি দেয়।

বিকেলে উপজেলা বিএনপির নেতারা সভাস্থলে উপস্থিত হন। এক পর্যায়ে দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের শঙ্কায় পুলিশ গিয়ে সভা পণ্ড করে দেয়।

এ বিষয়ে পোড়াগাঁও ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল মুন্সি বলেন, ‘আমরা ইউনিয়ন শ্রমিকদলের কমিটি পুনর্গঠনের জন্য মূলদলের আগেই ৩ অক্টোবর চিঠি বিলি করে সভা আহ্বান করি। আর মূলদলের চিঠিতে সভার তারিখ ছিল না।’

পোড়াগাঁও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মজিবর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘দলীয় একটু সমস্যার কারণে পরিচিতি সভা স্থগিত করা হয়েছে।’

নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমদাদুল হক বলেন, ‘বিএনপির দুই গ্রুপ একই স্থানে সভা ডাকায় গন্ডগোলের শঙ্কা দেখা দেয়। একারণে সেখানে সভা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তাছাড়া মধুটিলা ইকোপার্ক বিনোদনের স্থান, সেখানে সভা-সমাবেশ করা ঠিক না।’

আরও পড়ুন:
৯৬-এর আলোকে তত্ত্বাবধায়কের রূপরেখা করছে বিএনপি
কেবল বিদ্যুৎ নয়, সব কিছুতেই জাতি বিপর্যয়ে: ফখরুল
খুলনায় বিএনপির গণসমাবেশ ২২ অক্টোবর
দেবী দুর্গার আবির্ভাব সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠায়: ফখরুল
সরকার পতন আন্দোলনে বিএনপির নেতৃত্ব চান অলি

মন্তব্য

p
উপরে