× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Officers in that department do not want promotion
hear-news
player
print-icon

যে দপ্তরে কর্মকর্তারা পদোন্নতি চান না

যে-দপ্তরে-কর্মকর্তারা-পদোন্নতি-চান-না
শিক্ষা ক্যাডারের অন্তত ১০ জন কর্মকর্তা ৪ থেকে ১৪ বছর ধরে ঘুরেফিরে চাকরি করছেন এই শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরে। কেউ কেউ পদোন্নতি পেলেও ‘ইনসিটু পদায়ন’ (আগের পদে পুনর্বহাল) নিয়ে নিচের পদে বহাল থেকে চাকরি করছেন।

এমপিওভুক্ত ও স্বীকৃতিপ্রাপ্ত স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আর্থিক ও প্রশাসনিক অনিয়ম ও দুর্নীতি বের করাই তাদের কাজ। অথচ সেই সংস্থাতেই চর্চা হচ্ছে নানা অনিয়ম, উঠছে দুর্নীতির অভিযোগও। সংস্থাটি হলো শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর (ডিআইএ)।

নথিপত্র ঘেঁটে জানা যায়, শিক্ষা ক্যাডারের অন্তত ১০ জন কর্মকর্তা ৪ থেকে ১৪ বছর ধরে ঘুরেফিরে চাকরি করছেন এই অধিদপ্তরে। এদের কেউ কেউ পদোন্নতি পেলেও ‘ইনসিটু পদায়ন’ (আগের পদে পুনর্বহাল) নিয়ে নিচের পদে বহাল থেকে চাকরি করছেন। কেউ কেউ আবার চাকরি জীবনের বেশির ভাগ সময় ইতোমধ্যে পারও করে দিয়েছেন এই দপ্তরে।

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের (ডিআইএ) প্রধান কাজ স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন দপ্তর বা সংস্থায় পরিদর্শন এবং নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করা। পরিদর্শন শেষে প্রতিবেদনে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ও প্রশাসনিক অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনা তুলে ধরা হয়। সেই সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সুপারিশ করা হয়। এসবের ভিত্তিতে ব্যবস্থা নিয়ে থাকে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

সরকারি চাকরিবিধি অনুযায়ী, সরকারি কর্মচারীদের প্রতি তিন বছর পর পর বদলি করতে হবে। অর্থাৎ একই দপ্তরে তিন বছরের বেশি সময় থাকা যাবে না। বিষয়টি নির্দিষ্ট করে সরকার প্রজ্ঞাপনও জারি করেছে। এ ছাড়া সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি বা পদায়ন নীতিমালায়ও বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। একই সঙ্গে এক দপ্তর বা সংস্থা থেকে অন্য দপ্তর বা সংস্থায় সরাসরি বদলি না করার বিষয়টিও উল্লেখ রয়েছে। এই মধ্যবর্তী সময়ে তিন বছরের শিক্ষকতা করারও বাধ্যবাধকতা রয়েছে। তবে এ সরকারের বদলিসংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন ও নীতিমালাকে তোয়াক্কা না করেই চলছে পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তর।

২০১৫ সালের ৮ জুলাই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (জেলা ও মাঠ প্রশাসন) মো. মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারীর সই করা ‘মাঠপর্যায়ে কর্মরত কর্মচারীদের বদলি’ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ‘একই পদে তিন বছরের অধিককাল যাবৎ নিয়োজিত কর্মচারীকে বাস্তব অবস্থাভেদে অন্যত্র বদলি করতে হবে।’

এ ছাড়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সরকারি কলেজের শিক্ষক বদলি বা পদায়ন নীতিমালা-২০২০-এও বিষয়টি সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ রয়েছে। ২০২০ সালের ২ জুন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব ড. শ্রীকান্ত কুমার চন্দের সই করা নীতিমালায় বলা হয়েছে: ‘কোনো কর্মকর্তা দপ্তর/অধিদপ্তর/সংস্থায় একাধিক্রমে তিন বছরের বেশি কর্মরত থাকতে পারবেন না।’

নীতিমালায় আরও উল্লেখ রয়েছে ‘কোনো কর্মকর্তাকে একটি দপ্তর/ অধিদপ্তর/সংস্থা/প্রকল্প থেকে বদলি করে অন্য কোনো দপ্তর/অধিদপ্তর/সংস্থা/প্রকল্পে সরাসরি বদলি করা যাবে না। মধ্যবর্তী সময়ে তাকে কোনো কলেজে ন্যূনতম তিন বছর শিক্ষকতা করতে হবে।’

এসবের চর্চা পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরে হয় না বললেই চলে। শিক্ষাসংশিষ্ট ব্যক্তিরা বলছেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীন এ দপ্তরের কর্মকর্তারা চলছেন অনেকটা নিজেদের খেয়ালখুশিমতো। তাদের যেন কেউ কিছু করতে পারবে না। খোঁজ নিয়েও তাই দেখা গেছে। বিধিমালা লঙ্ঘন করে বছরের পর বছর পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরে থেকে যাচ্ছেন বেশ কয়েকজন কর্মকর্তা।

দীর্ঘ সময় আছেন যারা

শিক্ষা ক্যাডারের প্রভাষক, সহকারী অধ্যাপক ও সহযোগী অধ্যাপক পদমর্যাদার ২৯ কর্মকর্তা কর্মরত আছেন পরিদর্শন ও নিরীক্ষা পরিদপ্তরে। আর অধ্যাপক পদমর্যাদার আছেন একজন, যিনি এ দপ্তরের পরিচালকের দায়িত্বে রয়েছেন। এদের মধ্যে অন্তত ১০ কর্মকর্তা ন্যূনতম ৪ থেকে সর্বোচ্চ ১৪ বছর ধরে ঘুরেফিরে চাকরি করছেন এ দপ্তরে। এদের মধ্যে কেউ কেউ চাকরি জীবনের অর্ধেক সময় এরই মধ্যে পার করে ফেলেছেন।

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের যুগ্ম পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন বিপুল চন্দ্র সরকার। যদিও তার মূল পদ উপপরিচালক। ২১তম বিসিএসের এ কর্মকর্তা ২০১১ সালে শিক্ষা পরিদর্শক হিসেবে যোগদান করেন এ দপ্তরে। এরপর মাঝখানে খুবই স্বল্প সময়ের বিরতি দিয়ে ফিরে এসেছেন আলোচিত এ দপ্তরে। প্রায় ১১ বছর ঘুরেফিরে এ দপ্তরেই রয়েছেন এ কর্মকর্তা। এ সময়ের মধ্যে পরিচালকের পদ শূন্য থাকায় তিনি কিছুদিন এ দায়িত্বও পালন করেছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ডিআইএ-র এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সহকারী অধ্যাপক থেকে সহযোগী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি পেয়ে তিনি মাত্র ১৬ দিন পটুয়াখালী সরকারি কলেজে চাকরি করেন। এরপর আবার ফিরে আসেন ডিআইএতে।’

ডিআইএ-র এ কর্মকর্তা নিয়মবহির্ভূতভাবে দখল করে আছেন প্রতিষ্ঠানটির দ্বিতীয় শীর্ষ যুগ্ম পরিচালকের পদ। কারণ পদটি অধ্যাপক পদমর্যাদার। এ বিষয়ে অডিট আপত্তিও দিয়েছিল বাংলাদেশের মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক অফিসের অডিট দল।

এ বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিসিএস শিক্ষক সমিতির নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক নেতা। তারা বলেন, ‘ডিআইএর যুগ্ম পরিচালক পদটি অধ্যাপক পদমর্যাদার। অথচ সহযোগী অধ্যাপক পদমর্যাদার বিপুল চন্দ্র সরকার এখানে দায়িত্ব পালন করছেন। দেশে কি যোগ্য অধ্যাপক নেই যাকে এখানে পদায়ন দেয়া যায়?’

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক টুটুল কুমার নাগ সহকারী পরিদর্শক হিসেবে এ দপ্তরে যোগদান করেন ২০১২ সালে। এরপর ঘুরেফিরে আবার এসেছেন এ দপ্তরেই। দুই দফায় পদোন্নতি পেয়ে তিনি এখন উপপরিচালক। এর মধ্যে কেটে গেছে প্রায় ১০ বছর।

ড. এনামুল হক সহকারী পরিদর্শক পদে ডিআইএতে যোগদান করেন ২০০৮ সালে। এরপর তিনি দুই দফা থেকে পদোন্নতি পেয়েছেন। এখন দায়িত্ব পালন করছেন শিক্ষা পরিদর্শক হিসেবে। সবশেষ পদোন্নতি পাওয়ার পর এ কর্মকর্তাকে ‘ইনসিটু পদায়ন’ (আগের পদে পুনর্বহাল) দেয়া হয়। গত ১২ মে এ শিক্ষা পরিদর্শকের বিরুদ্ধে যশোরের ১০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ২০০ শিক্ষক-কর্মচারীর কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ তদন্তে ডিআইএ কার্যালয়ে যায় দুদক।

মো. আলমগীর হাসান ডিআইএতে যোগদান করেন ২০১৮ সালে। কর্মরত আছেন শিক্ষা পরিদর্শক পদে। এরপর থেকে তিনি আছেন এ দপ্তরেই।

এ ছাড়া সহকারী শিক্ষা পরিদর্শক মনিরুজ্জামান ২০১২ সালে, একই পদে প্রলয় দাস, মুহাম্মদ মনিরুল আলম ২০১৬ সালে, মো. আবদুল্লাহ আল মামুন ২০১৫ সালে ডিআইএতে যোগ দেন। আর মোহাম্মাদ মনিরুল ইসলাম ও মুকিব মিয়া ২০১৮ সালে যোগ দেন। এর পর থেকে তারা ঘুরেফিরে ডিআইএ-তেই আছেন।

বিষয়টি নিয়ে এসব কর্মকর্তাদের অন্তত ছয় জনের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগ করে নিউজবাংলা। তবে তারা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি নন। প্রসঙ্গটি তুলতেই কেউ কেউ মুঠোফোন কেটে দেন, কিংবা পরে যোগাযোগ করতে বলেন। কিন্তু পরে যোগাযোগের চেষ্টা করলে কেউ সাড়া দেননি। এ ছাড়া বাকিদের মধ্যে কেউ আছেন বিদেশে, কেউ ছুটিতে। ফলে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

কী মধু ডিআইএতে?

বিসিএস শিক্ষা সমিতির একাধিক নেতা জানান, আর্থিক সুবিধা বিবেচনা করলে শিক্ষা প্রশাসনের সবচেয়ে লোভনীয় কর্মস্থল ডিআইএ। এখানে পদায়ন ‘বাগিয়ে নিতে পারলে’ বৈধ ও অবৈধ নানা পন্থায় কা২ড়ি কাঁড়ি অর্থ কামানোর সুযোগ থাকে। প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন বা তদন্তে গেলে তদন্তকারী কর্মকর্তা সরকারিভাবে যেমন ভ্রমণভাতা পান, তেমনি অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠান থেকেও নানাভাবে অবৈধ সুবিধা আদায় করতে পারেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সরকারি একটি কলেজের অধ্যক্ষ অভিযোগ করেন, ডিআইএর কয়েক কর্মকর্তা নিরীক্ষার নামে ভয়ভীতি দেখিয়ে পরিদর্শনকৃত প্রতিষ্ঠান থেকেও অর্থ আদায় করে বিপুল অর্থবিত্তের মালিক হয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘ঘুরেফিরে একই কর্মকর্তারা এখানে (ডিআইএ) দায়িত্ব পালন করায় এ দপ্তরে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। এখানে মধু (অর্থ) আছে বলেই তো এরা বছরের পর বছর এখানে চাকরি করছেন।’

সম্প্রতি পরিদর্শনে গিয়ে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে ডিআইএ'র এক শিক্ষা পরিদর্শকের বিরুদ্ধে। বিষয়টি শেষ পর্যন্ত দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) পর্যন্তও গড়িয়েছে। অভিযোগটি এখন দুদকের তদন্তাধীন।

যা বলছে কর্তৃপক্ষ

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিক্ষা বিভাগের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আবু বকর ছিদ্দীক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি অল্প কিছুদিন হলো এ মন্ত্রণালয়ে যোগ দিয়েছি। বিষয়টি আমি অবশ্যই খোঁজ নেব।’

পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক অলিউল্লাহ্ মো. আজমতগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বদলি করার এখতিয়ার হলো মন্ত্রণালয়ের। এর বাইরে আমার কোনো মন্তব্য নেই।'

নিরীক্ষার নামে পরিদর্শনকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে অর্থ আদায় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এ ধরণের কোনো অভিযোগ আমরা পাইনি, পেলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সাবেক আমলারা কী বলছেন

একই কর্মকর্তারা ঘুরেফিরে একই দপ্তরে দীর্ঘ সময় থাকা এবং বারবার ফিরে আসা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সাবেক আমলারা। তারা বলছেন, এটা রীতিমতো সরকারি নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানো। তারা প্রশ্ন তুলেছেন, কীসের জোরে তারা এত দিন একই দপ্তরের নিয়োজিত রয়েছেন? কেনই বা তাদের বদলি করা হচ্ছে না। কী এমন মধু আছে এ দপ্তরে?

জানতে চাইলে সাবেক শিক্ষাসচিব নজরুল ইসলাম খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আপনিই খোঁজ নিন, কেন তারা একই দপ্তরে এত দিন আছে? ঘুরেফিরে একই কর্মকর্তা এত বছর একই দপ্তরে থাকবে কেন? এখানে কী মধু আছে? মনে রাখতে হবে বেশি দিন এক জায়গায় থাকলে অনৈতিক অনেক কিছু হওয়ার আশঙ্কা সৃষ্টি হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘শিক্ষাসচিব থাকাকালে ডিআইএ-এর দুষ্টচক্রের বৃত্ত ভাঙার জন্য পিয়ার ইন্সপেকশন সফটওয়্যারের মাধ্যমে নিরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনার উদ্যোগ নিয়েছিলাম। এখনকার সিস্টেমে ৩০ বছর লাগবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ইন্সপেকশন করতে।’

বিষয়টি পরিষ্কার করে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘পিয়ার ইন্সপেকশনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানরা পাশ্ববর্তী প্রতিষ্ঠানে অডিট করবেন, সেই প্রতিবেদন আসবে ডিআইএ-তে সফটওয়্যারের মাধ্যমে। কে কোন প্রতিষ্ঠান অডিট করবেন তাও কম্পিউটারের মাধ্যমে সংক্রিয়ভাবে নির্ধারিত হবে। ডিআইএ কর্মকর্তারা মাঠে পরিদর্শনে যেতে পারবেন না। তারা শুধু প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক কাজ করবেন। শুধু ওই প্রতিবেদনের বিশেষ প্রয়োজনে তারা ইন্সপেকশনে যাবেন। তারা (ডিআইএ কর্মকর্তারা) খালি টাকাপয়সা নিয়ে ইন্সপেকশন করে। এদের নানা বদনাম আছে।’

দীর্ঘদিন একই দপ্তরে কর্মরত থাকাকে অনিয়ম হিসেবে উল্লেখ করেছেন সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা অনিয়ম এবং সরকারি নিয়মকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখানো। তাদের বদলি করা উচিত। সব সরকারি কর্মচারীর জন্য একই বিধান। তাদের (শিক্ষা ক্যাডার) ক্ষেত্রে কেন আলাদা হবে। যদি তার বা তাদের পরিবর্তে কাজ করার মতো কেউ না থাকে তাহলে বিষয়টি অন্যভাবে বিবেচনা করা যেতে পারে। দেশে নিশ্চয়ই এ ধরনের কাজ (অডিট পরিচালনা) করার মতো অনেক লোক আছে।’

তদন্ত চায় টিআইবি

একই দপ্তরে একই কর্মকর্তা দীর্ঘদিন চাকরি করলে ‘যোগসাজশ ও অনিয়ম’-এর সুযোগ সৃষ্টি হয় বলে মনে করে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। তারা এ বিষয়ে তদন্ত করার জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কাছে দাবি জানিয়েছে।

টিআইবি নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন ‘বছরের পর বছর একই দপ্তরে থাকা- অবশ্যই প্রশ্নবিদ্ধ। কেন তারা দীর্ঘদিন একই দপ্তরে কর্মরত আছেন তা খতিয়ে দেখতে হবে। কেননা একই ব্যক্তি যদি একই প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন থাকেন তাহলে যোগসাজশ ও অনিয়মের সুযোগ সৃষ্টি হয়। এ জন্য আমরা মনে করি এর পেছনে নিশ্চয়ই অন্তর্নিহিত কোনো কারণ আছে, যা নিয়ে প্রশ্ন তোলা যায়।

‘যাদের কাজ জবাবদিহি নিশ্চিত করা, তারা যদি এমন কর্মকাণ্ডে জড়িত হয় তবে তা সত্যিই দুঃখজনক। এ জন্য বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের (শিক্ষা মন্ত্রণালয়) কাছে দাবি জানাচ্ছি’, বলেন ইফতেখারুজ্জামান।

আরও পড়ুন:
বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া দুই যুবকের মরদেহ উদ্ধার
শিক্ষা খাতে বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ দাবি
প্রাথমিকে স্কুলেই গান শেখানোর উদ্যোগ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
There will be religious education in the curriculum Minister of Education

ধর্মীয় শিক্ষা ছিল, আছে, থাকবে: শিক্ষামন্ত্রী

ধর্মীয় শিক্ষা ছিল, আছে, থাকবে: শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ছবি: নিউজবাংলা
‘যারা আজকে ধর্ম শিক্ষা তুলে দেয়া হয়েছে বলে ধোয়া তুলছেন তাদের উদ্দেশ্য ধর্ম রক্ষা নয়, পক্ষে থাকা নয় উদ্দেশ্য ধর্মকে অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করে দেশকে অস্থিতীশীল করা।

শিক্ষাক্রম থেকে ধর্মীয় শিক্ষা তুলে দেয়া হচ্ছে অভিযোগ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে সমালোচনা চলছে তা উড়িয়ে দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। তিনি বলেছেন, ধর্মীয় শিক্ষা তুলে দেয়ার কোনো পরিকল্পনা সরকারের নেই।

সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বুধবার দুপুরে তিনি এ কথা বলেন।

দীপু মনি বলেন, ‘একজন মাননীয় সংসদ সদস্য, আমি তখন দেশে ছিলাম না, একজন সংসদ সদস্য আমাদের পাঠ্যপুস্তকের বিষয়ে সংসদে দাঁড়িয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। পরে আবার তিনিই স্পিকারকে চিঠি দিয়ে বলেছেন, তার তথ্য সঠিক ছিলো না এবং তার এ বক্তব্য এখনকার বইয়ের জন্য প্রযোজ্য নয়। তিনি এগুলো প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়েছেন।

‘আমরা যে যেখানেই থাকি দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কথা বলার সময় সবচেয়ে ভালো, সঠিক তথ্য জেনে নিয়ে কথা বলা। আর একজন দায়িত্বশীল ব্যক্তির কাছ থেকে আমাদের চাওয়াটাও অনেক বেশি। আমি তাকে অন্তত এটুকু সাধুবাদ দিতে চাই যে, তিনি পরে হলেও তথ্য যাচাই করে ভুল স্বীকার করে প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘তার এ বক্তব্যের ভিডিও ব্যাপকভাবে, একটি অংশ যারা বিভিন্ন সময়েই ধর্মের দোহাই দিয়ে নানানভাবে আমাদের এগিয়ে যাওয়াকে বন্ধ করার চেষ্টা করে, তারা সেটি ব্যাপকভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দিচ্ছেন। কাজেই তিনি যা বলেছেন সেটি কেবল সেখানেই শেষ না, যেখানে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এটার ব্যাপক অপব্যবহার হচ্ছে।

‘এই বক্তব্যের কিছুদিন আগে থেকেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যাপক একটি প্রচারণা চলছিল। এটা আমার নজরে এসেছে। সেখানে বলা হয়েছে আমাদের নতুন শিক্ষাক্রম ধর্মশিক্ষা বাদ দেয়া হয়েছে। এটা সর্বৈব মিথ্যা। ধর্ম শিক্ষা সব সময় ছিল, এখনও আছে। না থাকবার কোনো কারণ নেই।’

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের শিক্ষায় আমরা বারবার বলছি, জ্ঞান দক্ষতা তা যেমন থাকবে, পাশাপাশি সঠিক মূল্যবোধ, নৈতিকতায় ধর্ম শিক্ষা একটি আবষ্যিক বিষয়। কাজেই ধর্ম শিক্ষা বাদ দেয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমরা বাদ দেইও নেই। নতুন কারিকুলামে আমরা যেমন সবকিছু করে করে শেখার দিকে যাচ্ছি সেখানে ধর্ম শিক্ষার বইগুলোও… শুধু পড়ে গেলাম তা যেন না হয়। তারা যেন ধর্ম শিক্ষার বোধগুলো, নৈতিকতা যেন অনুধাবন করতে পারে। তাদের জীবনে চর্চা করতে পারে সেভাবে বইগুলো তৈরি করা হয়েছে।

‘কাজেই যারা আজকে ধর্ম শিক্ষা তুলে দেয়া হয়েছে বলে ধোয়া তুলছেন তাদের উদ্দেশ্য ধর্ম রক্ষা নয়, পক্ষে থাকা নয় উদ্দেশ্য ধর্মকে অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করে দেশকে অস্থিতীশীল করা। দেশের ধর্মভীরু মানুষকে উসকে দিয়ে সরকারের বিরুদ্ধে এক ধরনের একটা পরিবেশ তৈরি করা এবং আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে দেশকে অস্থীতিশীল করে তোলা। আমার মনে হয় এটাই তাদের মূল উদ্দেশ্য।’

আরও পড়ুন:
শিক্ষা অফিসে সেবার মান নিয়ে দীপু মনি-নওফেলের অসন্তোষ
বন্যা গেলেই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী
সহশিক্ষা কার্যক্রম কর্মজীবনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে : শিক্ষামন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
No organization of 32 upazilas has been registered in MPO

এমপিওভুক্ত হয়নি ৩২ উপজেলার কোনো প্রতিষ্ঠান

এমপিওভুক্ত হয়নি ৩২ উপজেলার কোনো প্রতিষ্ঠান প্রতীকী ছবি
শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানান, দেশের মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের ৩২ উপজেলা ও সিটি করপোরেশনভুক্ত ২২ থানার একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে ২২৩টি ও মাদ্রাসা শিক্ষার ক্ষেত্রে ২০০টি উপজেলা থেকে একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির অনুমোদনের যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি।

পৌনে তিন বছর পর এমপিওভুক্ত হলো মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৭১৬ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের আওতায় রয়েছে ২ হাজার ৫১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। আর কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় ৬৬৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

এবার দেশের মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের ৩২ উপজেলার একটি প্রতিষ্ঠানও পায়নি এমপিওভুক্তির অনুমোদন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলনকক্ষে বুধবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

তিনি জানান, দেশের মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের ৩২ উপজেলা ও সিটি করপোরেশনভুক্ত ২২ থানার একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি। এ ছাড়া কারিগরি শিক্ষার ক্ষেত্রে ২২৩টি ও মাদ্রাসা শিক্ষার ক্ষেত্রে ২০০টি উপজেলা থেকে একটি প্রতিষ্ঠানও এমপিওভুক্তির অনুমোদনের যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি।

মন্ত্রী জানান, মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের ১৮টি এবং কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ২১৩টি, মাদ্রাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ১৫২টি উপজেলা থেকে এমপিওভুক্তির আবেদন পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও জানান, আবেদন করার পরও এমপিওভুক্তির জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে না পারা উপজেলার সবগুলোতে অন্তত একটি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলেজ, কারিগরি শিক্ষা এবং মাদ্রাসা শিক্ষার যেকোনো একটিকে নেয়া হয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় স্বীকৃতি/স্বীকৃতির সুপারিশ রয়েছে এমন প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ নম্বরপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানকে বিবেচনা করা হয়েছে।

আঞ্চলিক অসামঞ্জস্য দূর করতে মাধ্যমিক ও কলেজ পর্যায়ের ২৯টি, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষার ক্ষেত্রে ১৭টি প্রতিষ্ঠানকে বিবেচনা করা হয়েছে। শিক্ষায় পশ্চাৎপদতা, অনগ্রসরতা বিবেচনায় নিয়ে এমপিওভুক্তির জন্য যোগ্যতা অর্জন করতে না পারা দশটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই করা হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে ৬৬৬টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১ হাজার ১২২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৩৬টি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১০৯টি উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ এবং ১৮টি ডিগ্রি কলেজ।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে এসএসসি ভোকেশনাল অথবা দাখিল ভোকেশনাল ৯৭টি, এসএসসি বিজনেস ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড টেকনোলজি ২০০টি, ডিপ্লোমা ইন অ্যাগ্রিকালচার দুটি, দাখিল মাদ্রাসা ২৬৪টি, আলিম মাদ্রাসা ৮৫টি, ফাজিল মাদ্রাসা ৬টি ও কামিল মাদ্রাসা ১১টি।

এর আগে সকালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও এসব প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ে গত বছরের ৭ নভেম্বর ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কমিটিকে সহায়তা করতে চার সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্ত করতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে ১০ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করতে বলা হয়।

আবেদনকৃত প্রতিষ্ঠানগুলোকে এমপিওভুক্তির জন্য প্রাথমিক তালিকা করে এমপিও যাচাই-বাছাই কমিটি। এই তালিকা শিক্ষামন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়। মন্ত্রীর অনুমোদনের পর এটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন শেষে এটি চূড়ান্ত করা হয়।

সবশেষ ২০১৯ সালে ২ হাজার ৬৩৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়। এর আগে ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল।

গত অর্থবছরের (২০২১-২২) বাজেট বরাদ্দের যে প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে নতুন প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির জন্য ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জন্য ২০০ কোটি টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের জন্য ৫০ কোটি টাকা।

দেশে এ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে এমন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৬ হাজার ৪৪৮টি। আর এমপিওভুক্ত হয়নি এখনও প্রায় ৭ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার জন্য গত বছরের ২৯ মে সংশোধিত এমপিও নীতিমালা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে এমপিওভুক্তির জন্য তিনটি শর্ত দেয়া হয়।

শিক্ষার্থী, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার—এই তিন বিষয়ে ১০০ নম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০, পরীক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০ এবং পাসের হারে ৪০ নম্বর রাখা হয়েছে। আগের নীতিমালায় প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতির মেয়াদের ওপর ২৫ নম্বর ছিল, যা সংশোধিত নীতিমালায় বাদ দেয়া হয়েছে।

২০২১ সালের নীতিমালায় কোন ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম কতজন শিক্ষার্থী থাকতে হবে, তা বেঁধে দেয়া হয়েছে।

নীতিমালা অনুযায়ী নিম্ন মাধ্যমিকে শহরে ১২০ ও মফস্বলে ৯০, মাধ্যমিকে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহরে ৪২০ ও মফস্বলে ৩২০, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে শহরে ২৫০ ও মফস্বলে ২২০ এবং ডিগ্রি কলেজে স্নাতকে শহরে ৪৯০ ও মফস্বলে ৪২৫ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। পাসের হার স্তরভেদে ৪৫ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ শতাংশ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সব স্কুলে হচ্ছে কিশোর-কিশোরী ক্লাব
শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির জটিলতার অবসান হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী
এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা
করোনায় স্কুল ছেড়েছে ৩৫ শতাংশ শিক্ষার্থী
শিক্ষায় ‘বেড়াই খাচ্ছে ক্ষেত’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There are 2618 educational institutions in MPO

এমপিওভুক্ত হচ্ছে ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান

এমপিওভুক্ত হচ্ছে ২৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষা ভবন। ফাইল ছবি
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বলেন, ‘এ বছর নতুন করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হচ্ছে। আজ দুপুরে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হবে।’

পৌনে তিন বছর পর এমপিওভুক্ত হচ্ছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৭১৬ বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল খায়ের বুধবার এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘এ বছর নতুন করে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের ২ হাজার ৭১৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত হচ্ছে। আজ দুপুরে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়া হবে।’

এমপিওভুক্ত দুই হাজার ৭১৬ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের আওতায় রয়েছে ২ হাজার ৫১টি। আর কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের আওতায় আছে ৬৬৫টি।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬৬৬টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১ হাজার ১২২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১৩৬টি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ১০৯টি উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ ও ১৮টি ডিগ্রি কলেজ রয়েছে।

কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে এসএসসি ভোকেশনাল অথবা দাখিল ভোকেশনাল ৯৭টি, এসএসসি বিজনেস ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড টেকনোলোজি ২০০টি, ডিপ্লোমা ইন অ্যাগ্রিকালচার দুটি, দাখিল মাদ্রাসা ২৬৪টি, আলিম মাদ্রাসা ৮৫টি, ফাজিল মাদ্রাসা ৬টি ও কামিল মাদ্রাসা ১১টি।

চলতি বছরের মে মাসে বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। পরে তা প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়।

এর আগে গত বছরের ৭ নভেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে এই কমিটিকে সহায়তা করতে আরও চার সদস্যের একটি উপকমিটি গঠন করা হয়।

এ কমিটিকে সহায়তা করে ব্যানবেইসের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট আবু তাহের খানের নেতৃত্বে চার সদস্যের কমিটি।

গত বছরের ৩০ সেপ্টেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্ত করতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে ১০ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করতে বলা হয়।

সবশেষ ২০১৯ সালে ২ হাজার ৬৩৯টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়। এর আগে ২০১০ সালে ১ হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়েছিল।

গত অর্থবছরের (২০২১-২২) বাজেট বরাদ্দের যে প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে নতুন প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির জন্য ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের জন্য ২০০ কোটি টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের জন্য ৫০ কোটি টাকা।

দেশে এ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে এমন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২৬ হাজার ৪৪৮টি। আর এমপিওভুক্ত হয়নি এখনও প্রায় ৭ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার জন্য গত বছরের ২৯ মে সংশোধিত এমপিও নীতিমালা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে এমপিওভুক্তির জন্য তিনটি শর্ত দেয়া হয়।

শিক্ষার্থী, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার—এই তিন বিষয়ে ১০০ নম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০, পরীক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০ এবং পাসের হারে ৪০ নম্বর রাখা হয়েছে। আগের নীতিমালায় প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতির মেয়াদের ওপর ২৫ নম্বর ছিল, যা সংশোধিত নীতিমালায় বাদ দেয়া হয়েছে।

২০২১ সালের নীতিমালায় কোন ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম কতজন শিক্ষার্থী থাকতে হবে, তা বেঁধে দেয়া হয়েছে।

নীতিমালা অনুযায়ী, নিম্ন মাধ্যমিকে শহরে ১২০ ও মফস্বলে ৯০, মাধ্যমিকে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহরে ৪২০ ও মফস্বলে ৩২০, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে শহরে ২৫০ ও মফস্বলে ২২০ এবং ডিগ্রি কলেজে স্নাতকে শহরে ৪৯০ ও মফস্বলে ৪২৫ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। পাসের হার স্তরভেদে ৪৫ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ শতাংশ করা হয়েছে।

[সংশোধনী: শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে শুরুতে এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বলা হয়েছিল ২ হাজার ৬১৬টি। প্রায় এক ঘণ্টা পর মন্ত্রণালয় সে সংখ্যাটি ২ হাজার ৭১৬ বলে জানায়।]

আরও পড়ুন:
শিক্ষকদের এমপিওভুক্তির জটিলতার অবসান হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী
এক সপ্তাহের মধ্যে নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা
করোনায় স্কুল ছেড়েছে ৩৫ শতাংশ শিক্ষার্থী
শিক্ষায় ‘বেড়াই খাচ্ছে ক্ষেত’
এমপিওভুক্তির তালিকা চূড়ান্ত, ঘোষণা আসছে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The Midsummer Nights Dream is staged at JB

জবিতে মঞ্চস্থ হলো ‘এ মিডসামার নাইটস ড্রিম’

জবিতে মঞ্চস্থ হলো ‘এ মিডসামার নাইটস ড্রিম’ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হয় ‘এ মিডসামার নাইটস ড্রিম’। ছবি: নিউজবাংলা
বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় নাটকটি মঞ্চস্থ হয়। নাট্যকলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষ ষষ্ঠ সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা প্রযোজনাটি নির্দেশনা দিয়েছেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সঞ্জীব কুমার দে।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) নাট্যকলা বিভাগের প্রযোজনায় মঞ্চস্থ হয়েছে উইলিয়াম শেক্সপিয়র রচিত ‘এ মিডসামার নাইটস ড্রিম’।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টায় নাটকটি মঞ্চস্থ হয়। নাট্যকলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষ ষষ্ঠ সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা প্রযোজনাটি নির্দেশনা দিয়েছেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সঞ্জীব কুমার দে।

শেক্সপিয়র রচিত অন্যতম জনপ্রিয় ও সারা বিশ্বে অভিনীত কমেডি নাটক এটি। এথেন্সের ডিউক থিসিয়াস ও আমাজনদের রানি হিপ্পোলিটার বিয়ের পারিপার্শ্বিক ঘটনা অবলম্বনে রচিত এই নাটক। নাটকে দুই প্রণয়ীযুগল ও একদল শখের অভিনেতার অ্যাডভেঞ্চার প্রদর্শিত হয়েছে।

নাটকটিতে অভিনয় করেছেন- শফিকুল, আরিফ, মৌমিতা, সাবরিনা, পরমা, অনামিকা, মৃত্তিকা, বৃষ্টি, সাবিহা, প্রিয়া, শাকিল, নিবিড়, জিন্নাত, নাফিস, মিল্টন, রিয়াজ, জান্নাতুল, লামিয়া, স্বর্ণা, উম্মেহানি, রিমি, বিথী, ফারজানা, সায়লা, সুজানা, আশরাফুল, উচ্ছ্বাস, হৃদয়, ইব্রাহিম, আলিমুল, আবেশ ও এলিন।

নাটকটির মঞ্চ আলোক পরিকল্পনায় ছিলেন বিভাগীয় চেয়ারম্যান শামস্ শাহরিয়ার কবি। পোশাক পরিকল্পনা ও অঙ্গরচনা তত্ত্বাবধান করেন বিভাগীয় শিক্ষক আফরিন হুদা তোড়া। দেহবিন্যাস তত্ত্বাবধানে ছিলেন বিভাগীয় শিক্ষক রুবাইয়া জাবীন প্রিয়তা ও কৃপাকণা তালুকদার। আলোক প্রক্ষেপণে ছিলেন মাহাবুবুর রহমান এবং মিউজিকে ইব্রাহীম এলিন ও হোসেন হৃদয়।

এছাড়াও বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থীরা নেপথ্যে রয়েছেন। মঞ্চবিন্যাসে ছিলেন অনামিকা, মৌমিতা, শাকিল, দিনা, আরিফ, আলিম, নিবিড়, শাহিনুল, জান্নাতুল, সায়লা, লামিয়া, মিল্টন ও মুস্তাকিন।

নাটক প্রসঙ্গে নির্দেশক সঞ্জীব কুমার দে বলেন, শিক্ষায়তনে নাট্য প্রযোজনা সিলেবাসের আবর্তে চলমান। তারই ধারাবাহিকতায় জবি নাট্যকলা বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের প্রযোজনা এটি। এই নাট্য নির্মাণের ক্ষেত্রে ক্লাসিকের গুরুত্ব অক্ষুণ্ন রেখে সমসাময়িক বিষয়কে যুক্ত করার চেষ্টা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘কমেডি খুব সহজভাবে হাস্যরসের মধ্য দিয়ে জীবনের অসঙ্গতিগুলোকে সমাজের সামনে প্রকাশ করে। নাটকের কল্পকাহিনীর মূল বিষয় হলো হাস্যরস এবং প্রেম। প্রেম যেন একটা শৃঙ্খলাবিহীন হাস্যকর বিষয়। প্রেমে পড়া মানুষ অতি সহজেই জীবনের ভিন্ন ভিন্ন চরিত্রে পরিণত হয়।

‘প্রেম আর যুক্তির সহাবস্থানের ক্ষেত্রে যে প্রশ্ন উত্থাপিত হয় এই নাটকে তার উত্তর খোঁজার চেষ্টা হয়েছে। এই সংকটময় জটিল জীবনে প্রেমের জটিলতা যে হাস্যরস তৈরি করে তা দর্শক-মনকে প্রফুল্ল করবে আশা করছি।’

আরও পড়ুন:
রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধর: প্রতিবেদন ২৮ জুলাই
রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধর, জবি ছাত্রের নামে মামলা
শিক্ষার্থীদের ৫০ লাখ টাকা বৃত্তি দিল জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
জবিতে খাবারের দাম কমানো ও অঙ্কনের মৃত্যু রহস্য উদ্ঘাটনের দাবি
ডিএসসিসির খোঁড়াখুঁড়িতে ভাঙল জবির প্রাচীর, সংস্কারে নেই উদ্যোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
This time 31 people from that college are in DU

সেই কলেজ থেকে এবার ঢাবিতে ৩১ জন

সেই কলেজ থেকে এবার ঢাবিতে ৩১ জন সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজ থেকে ৩১ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পেয়েছে ঢাবিতে। ছবি: নিউজবাংলা
একই শিক্ষাবর্ষে সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ৩৯ জন এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পান এই কলেজ থেকে।

সরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মেধার প্রতিফলন ঘটিয়েছে নীলফামারীর সৈয়দপুর বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থীরা।

এখানকার ৩১ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পেয়েছে ঢাবির ‘ক’ ইউনিটে বা বিজ্ঞান বিভাগে।

২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষের প্রকাশিত ফলাফলে এই কৃতিত্ব অর্জন করেছে এই বিদ্যাপীঠ। ভর্তির সুযোগ পাওয়া ৩১ জনের মধ্যে ২৬ জন ছেলে ও ৫ জন মেয়ে রয়েছেন।

একই শিক্ষাবর্ষে সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ৩৯ জন এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পান এই কলেজ থেকে।

চলতি বছর সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ২৬৮ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়ে উত্তীর্ণ হন ২৬৫ জন। এর মধ্যে জিপিএ-৫ অর্জন করেন ২৪৯ জন।

২০২১-২০২২ শিক্ষাবর্ষে এমবিবিএস পরীক্ষায় ৩৯ জন, বুয়েটে ১৬ জন এবং সবশেষ ঢাবিতে ৩১জনের মেধার বহিঃপ্রকাশ ঘটে।

২০২১ সালে ৪০ জন, ২০২০ সালে ৪০ জন, ২০১৯ সালে ৩৬ জন ও ২০১৮ সালে ৩৮জন শিক্ষার্থী সরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির সুযোগ পান। প্রতি বছর মেডিক্যাল ছাড়াও বুয়েট, রুয়েট, চুয়েটসহ বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার জায়গা করে নেন এই কলেজের শিক্ষার্থীরা।

ঢাবিতে ভর্তির সুযোগ পাওয়া নূর আলম বলেন, ‘সবচেয়ে বড় ব্যাপার হলো, এখানে পড়াশোনায় প্রতিযোগিতা থাকে। আমরা যারা পড়ি, কে কার চেয়ে ভালো করব, এটাই লক্ষ্য থাকে।

‘বাবা-মায়ের দোয়া আর শিক্ষকদের সঠিক নির্দেশনায় ঢাবিতে ভর্তির সুযোগ পেয়েছি। এটা কতটা আনন্দের, বলার ভাষা নেই।’

ভর্তির সুযোগ পাওয়া আরেক শিক্ষার্থী ঈশিকা বলেন, ‘শিক্ষকরা কঠোর তদারকি করতেন। পুঙ্খানু পুঙ্খানুভাবে আমাদের পড়াশোনা বিশ্লেষণ করতে হয়। যার কারণে সুফল পাই আমরা শিক্ষার্থীরা। আজকে ঢাবিতে সুযোগ পাওয়ায় সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।’

অভিভাবক পরিতোষ কুমার রায় বলেন, ‘প্রতিষ্ঠানটি আমাদের অভিভাবকদের মধ্যে সাহস জুগিয়েছে এবং প্রতিযোগিতায় ফেলে দিয়েছে। ছেলে-মেয়েদের পড়াশোনার ক্ষেত্রে আমরা সোচ্চার হচ্ছি এবং শিক্ষকদের কঠোর মনিটরিংয়ের ফলে ভালো ফলাফল পাওয়া যাচ্ছে।’

সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজের অধ্যক্ষ গোলাম আহমেদ ফারুক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের এ অর্জনে আমরা গর্বিত। প্রতিটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ও ইঞ্জিনিয়ারিং গুচ্ছে এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী রয়েছে।’

অধ্যক্ষ বলেন, ‘আমরা এখানে শিক্ষার্থীদের গ্রিন-ক্লিন লার্নিং পদ্ধতিতে পড়ানোর চেষ্টা করি। এতে সবার মধ্যে প্রতিযোগিতা ও মননশীলতা বৃদ্ধি পায়। এখানে ভর্তি পরীক্ষা অত্যন্ত স্বচ্ছ।

‘ক্লাশরুমেই সম্পূর্ণ পাঠদান হয়। এর ওপর ভিত্তি করে শিক্ষার্থীদের যাবতীয় প্রয়োজনীয়তা মাথা রাখা হয়।’

তিনি বলেন, ‘প্রতি বছরই আমাদের ভালো করার প্রানান্ত চেষ্টা থাকে। আমরা সেভাবে শিক্ষার্থীদের তৈরি করে থাকি।’

১৯৬৪ সালে সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ প্রতিষ্ঠিত হয়। ওই সময় প্রতিষ্ঠানটির নাম ছিল সৈয়দপুর সরকারি কারিগরী স্কুল। পরে এটিকে ১৯৭৭ সালে কলেজে উন্নীত করা হয়।

ওই সময় সৈয়দপুর সরকারি কারিগরী বিজ্ঞান মহাবিদ্যালয় নামকরণ করা হয়। ২০২০ সালে সৈয়দপুর সরকারি বিজ্ঞান কলেজ নতুন নাম করা হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Leaders allegations against JOB BCL president and secretary

জবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে নেতাদের এন্তার অভিযোগ

জবি ছাত্রলীগ সভাপতি-সম্পাদকের বিরুদ্ধে নেতাদের এন্তার অভিযোগ সোমবার জবি প্রেসক্লাবে গণমাধ্যমের সামনে প্রকাশ্যে নানা অভিযোগ তোলেন শাখা ছাত্রলীগের নেতাদের একাংশ। ছবি: নিউজবাংলা
জাবি ছাত্রলীগ নেতৃত্বের একংশের অভিযোগ, শাখা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক একক কর্তৃত্ব ধরে রাখতে অন্যদের সামনে আসতে দেন না। ক্যাম্পাসে অন্য নেতাদের পোস্টার ছিঁড়ে ফেলা, যেকোনো প্রোগ্রামে মঞ্চে উঠতে বাধা দেয়া, এমনকি এক নেতাকে প্রকাশ্যে জুতাপেটাও করেছেন তারা।

সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড় দাঁড় করিয়েছেন শাখা ছাত্রলীগের অন্য নেতারা।

টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, মারধর, নারী হেনস্থা, নেতাকর্মীদের অপদস্ত করা এমনকি একই শাখার অন্য এক নেতাকে প্রকাশ্যে জুতাপেটার অভিযোগও উঠেছে।

জবি ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কামরুল হুসাইন ও পরাগ হোসেন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফৌজিয়া জাফরিন প্রিয়ন্তী এবং সাংগঠনিক সম্পাদক হাসিবুল হাসান হৃদয় নিউজবাংলার কাছে এসব অভিযোগ তুলে ধরেন।

এছাড়াও সোমবার বিকেলে জবি প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে গণমাধ্যমের সামনে প্রকাশ্যে এসব অভিযোগ তোলেন শাখা ছাত্রলীগের নেতাদের একাংশ।

অভিযোগ তুলে তারা বলেন, শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক একক কর্তৃত্ব ধরে রাখতে অন্য নেতাকর্মীদের সামনে আসার সুযোগ দেন না। ক্যাম্পাসে অন্য নেতাদের টানানো পোস্টার রাতের আঁধারে ছিঁড়ে ফেলা, যেকোনো প্রোগ্রামে মঞ্চে উঠতে বাধা দেয়া, কেন্দ্রীয় নেতাদের প্রটোকল দিতে না দেয়া, এমনকি এক নেতাকে প্রকাশ্যে জুতাপেটাও করেছেন তারা।

এছাড়াও সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজির ছাত্রদল-সংশ্লিষ্টতা ও সাধারণ সম্পাদক আকতার হোসেনের বাবা যুবদলের ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা ছিলেন বলেও অভিযোগ করেন তারা।

ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি কামরুল হুসাইন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিজেদের পকেট ভারী করতে ছাত্রলীগের নাম করে ক্যাম্পাসে টেন্ডারবাজি করেছেন। নতুন ক্যাম্পাসের প্রকল্প কাজ যুদ্ধাপরাধী জামায়াত নেতা মীর কাশেমের কোম্পানিকে পাইয়ে দিয়ে সেখান থেকে কমিশন খেয়েছেন।

‘জবি ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম ফরাজি মেয়ে নিয়ে রিসোর্টে যান বলে গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে। যেখানে রাত ৯টায় হলের গেট বন্ধ হয়ে যায় সেখানে কী করে মধ্যরাতে তারা হলে প্রবেশ করেন?’ সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দোষীদের শাস্তির দাবি জানান তিনি।

আরেক সহ-সভাপতি পরাগ হোসেন বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের এক নেতার সঙ্গে আমার ঝামেলা হয়। সেখানে হাতাহাতির ঘটনাও ঘটে। আমি থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ তা না নিয়ে জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের নিষেধ আছে বলে জানায়৷ সভাপতিকে তা জানালে সেই ছেলে আকতারের রাজনীতি করে বলে ঘটনা এড়িয়ে যান।’

সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে ‘কুপ্রস্তার’-এর অভিযোগ আনা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ফৌজিয়া জাফরিন প্রিয়ন্তী বলেন, ‘ছাত্রী হলে সিট পেতে ছাত্রলীগ থেকে ৩০০ জনের নাম দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সদ্য যুক্ত হওয়া ৬/৭জনও আছে। অথচ ক্যাম্পাসে ৭ বছর রাজনীতি করলেও আমার নাম দেয়া হয়নি।

‘আমাকে যেমন কুপ্রস্তাব দিয়েছে, মনোবাসনা পূরণ করার কথা বলা হয়েছে, তাদেরও যে তেমনটা বলা হয়নি তার কী প্রমাণ আছে!’

প্রিয়ন্তী আরও বলেন, ‘মাদারীপুরে বাড়ি হওয়ায় আকতার ভাই ও আমি একসঙ্গে রাজনীতি করেছি। কিন্তু নেতা হওয়ার পর তার আসল রূপ দেখতে পেয়েছি। এরপর থেকে ক্যাম্পাসে রাজনীতি করা আমার জন্য কঠিন হয়ে পড়েছে।

‘ক্যাম্পাসে তার প্যানেলে থাকতে পারব না বলে সভাপতির কাছে যাই। সেখানেও আমাকে রাজনীতি করতে দেয়া হয়নি। আমি এর সঠিক বিচার চাই। ক্যাম্পাসে মেয়েদের রাজনীতি করার পরিবেশ নিশ্চিত করতে চাই।’

জবি ছাত্রলীগের ১ নম্বর সাংগঠনিক সম্পাদক রিফাত সাঈদ অভিযোগ করে বলেন, ‘পুরান ঢাকার রায়সাহেব বাজার মোড়ে পপুলার ডায়াগনস্টিক সেন্টারে আমার পরিচয়ে চাঁদা দাবি করেছে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারীরা। তাৎক্ষণিকভাবে জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বিষয়টি জানালেও সাংগঠনিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। কারণ তারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের একান্ত আস্থাভাজন।’

সাংগঠনিক সম্পাদক হাসিবুল হাসান হৃদয় বলেন, ‘আমি ২০১৫ সাল থেকে ক্যাম্পাসে রাজনীতি করি। নিজের যোগ্যতায় সংগঠনে পদ পেয়েছি। ক্যাম্পাসের পাশে এক মার্কেটের মালিকের খোঁজখবর নেয়ায় বলা হয়েছে আমি নাকি চাঁদাবাজি করি। আমাকে সবার সামনে অপমান করা হয়েছে। বহিষ্কারের হুমকি দেয়া হয়েছে।

‘রোজার ঈদের আগে ভিসি ভবনের সামনে ইব্রাহিম ফরাজি পায়ের জুতা খুলে আমার দুই গালে বাড়ি দিয়েছে। দুইটা থাপ্পড় মেরেছে আর যেসব অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেছে তা আসলে ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আমি বলেছিলাম অপরাধ করে থাকলে আমার বিচার হবে। কিছু না করেও কেন আমাকে অপমানিত হতে হলো? আমি এর বিচার চাই।’

জবি ছাত্রলীগ নেতৃত্বের একাংশ আরও অভিযোগ তুলেছে, শাখা ছাত্রলীগের ৩৫ সদস্যবিশিষ্ট কমিটির গুটি কয়েক সদস্য ছাড়া সবাই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের হেনস্থার শিকার হয়েছেন।

গণমাধ্যমের সামনে এসব অভিযোগ তুলে ধরার সময় ১০-১২ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে সহ-সভাপতি প্রিতিশ দত্ত রাজ, মিঠুন বাড়ৈ, মাসুম পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক রাসেল ও আবু রায়হান অভিযোগের বিষয়ে সক্রিয় অবস্থানে রয়েছেন।

এছাড়াও নিউজবাংলার অনুসন্ধানে জবি ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারী নেতাকর্মীদের চাঁদাবাজির চিত্র উঠে এসেছে। সম্প্রতি সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করা হলেও চাঁদাবাজি থেমে থাকেনি।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, ছাত্রলীগ সভাপতির অনুসারী রবি ও সাধারণ সম্পাদকের অনুসারী মাসুদ েই চাঁদাবাজির টাকা তোলায় সরাসরি জড়িত। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনের অংশে কথিত টিএসসির প্রতিটি দোকান থেকে ২০০ টাকা, ভ্যানের ওপর ভ্রাম্যমাণ দোকানগুলো থেকে ৫০০-৬০০ টাকা চাঁদা নেয়া হয়। চাঁদাবাজি থেকে বাদ যাচ্ছে না ফুটপাতের মুচির দোকানও।

ঈদুল ফিতরের আগে এপেক্স কোম্পানির সদরঘাটের নতুন শাখা থেকে চাঁদা আদায় করেন ছাত্রলীগ সহ-সভাপতি মেহেদী বাবু। আউটলেটটির ম্যানেজার ও এক কর্মচারী সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

নেতাদের আনা এসব অভিযোগের ব্যাপারে কথা বলতে জবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মোবাইল ফোনে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও সাড়া পাওয়া যায়নি। এসএমএস পাঠালেও কোনো উত্তর মেলেনি।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Belal is not stopping even though he is suffering in DU

ঢাবিতে কষ্ট পেলেও থামছেন না বেলাল

ঢাবিতে কষ্ট পেলেও থামছেন না বেলাল বেলায়েত শেখ। ফাইল ছবি
‘অনেক স্বপ্ন ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ার। তবে সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না। আমার স্বপ্ন অধরাই থেকে গেল। স্বপ্নভঙ্গের কষ্ট তো আমাকে পোড়াবেই। সামনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করব। আশা করি, দেশের যেকোনো একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া সুযোগ পাব।’

৫৫ বছর বয়সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে আলোড়ন তৈরি করা বেলায়ত হোসেনকে নিরাশ হতে হলো। পরীক্ষায় পাস করতে না পারায় কষ্টে আছেন তিনি। তবে এখানেই থেমে থাকতে চান না, দেশের অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেবেন। আশা, কোথাও না কোথাও ভর্তির সুযোগ মিলবে।

বেলায়েত বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অংশ নিয়েছিলেন। মঙ্গলবার দুপুরে এই ইউনিটের ফল প্রকাশ হয়। এতে দেখা যায়, তিনি পাস করতে পারেননি। আর যে নম্বর পেয়েছেন, তাতে তিনি আরও বেশি হতাশ হয়েছেন।

গত ১১ জুন পরীক্ষা দেয়ার পর বেলায়েত জানিয়েছিলেন পরীক্ষা ভালো হয়েছে। এত বয়সে এর আগে কেউ বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক শ্রেণিতে ভর্তির চেষ্টা করেনি।

তবে প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যায়, ৬০ নম্বরের নৈর্ব্যক্তিক অংশে বেলায়েত পেয়েছেন ৮ । এমসিকিউতে ফেল করায় তার লিখিত অংশের খাতা মূল্যায়নের জন্যে বিবেচিতই হয়নি।

আট নম্বরের মধ্যে নৈর্ব্যক্তিক অংশের বাংলায় ২, ইংরেজিতে ২.৭৫ এবং সাধারণ জ্ঞান অংশে পেয়েছেন ৩.২৫ নম্বর।
আর মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার জিপিএসহ সর্বমোট নম্বর পেয়েছেন ২৬ দশমিক ২।

বেলায়েত বাংলা অংশের নৈর্ব্যক্তিকে মোট ১২টি প্রশ্নের উত্তর দেন। এর মধ্যে আটটি প্রশ্নের উত্তরই ছিল ভুল।
ইংরেজিতে নয়টি প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন। সেখানে পাঁচটি প্রশ্নের উত্তর তার ঠিক হয়নি।

সাধারণ জ্ঞান অংশে দেয়া ১২টি প্রশ্নের মধ্যে তিনি সাতটি প্রশ্নেরই ভুল উত্তর দিয়েছেন।

বেলায়েত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অনেক স্বপ্ন ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ার। তবে সেই স্বপ্ন আর পূরণ হলো না। আমার স্বপ্ন অধরাই থেকে গেল। স্বপ্নভঙ্গের কষ্ট তো আমাকে পোড়াবেই।’

নম্বর প্রত্যাশার চেয়ে কম এসেছে এবং এটা আরও বেশি পোড়াচ্ছে বেলায়েতকে। তিনি বলেন, ‘পরীক্ষা ভালোই দিয়েছিলাম। তবে এত কম নম্বর পাব তা ভাবিনি। আশা করেছিলাম পাস করব। তবে সেটাও হলো না। অনেক খারাপ লাগছে। আমার ভাগ্যটাই ভালো না।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হতাশ হলেও থেমে থাকবেন না বলে জানিয়েছেন বেলায়েত। আসলে তিনি থেমে থাকার মানুষও নন।

তিনি বলেন, ‘সামনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করব। আশা করি, দেশের যেকোনো একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া সুযোগ পাব।’

বেলায়েতের জীবন কাহিনি বলে তিনি এগিয়ে যেতে চান।

আর্থিক দুরবস্থা ও বাবার অসুস্থতার কারণে ১৯৮৩ সালে নবম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ার পর লেখাপড়া থেকে ছিটকে যান বেলায়েত। হাল ধরতে হয় সংসারের।

বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার স্বপ্ন পূরণ না হওয়ার পর প্রথমে ভাই বোন ও পরে সন্তানদেরকে দিয়ে চেষ্টা করেন বেলায়েত। কিন্তু তারাও পারেনি। এরপর বয়স ৫০ পেরিয়ে যাওয়ার পর আবার পড়াশোনা শুরু করেন তিনি।

২০১৭ সালে ঢাকার বাসাবোর দারুল ইসলাম আলিম মাদরাসা থেকে ৪ দশমিক ৪৩ জিপিএ নিয়ে তিনি এসএসসি (ভোকেশনাল) পাস করেন। চার বছর পর ২০২১ সালে রামপুরার মহানগর কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে জিপিএ ৪ দশমিক ৫৮ পেয়ে পাস করেন এইচএসসি (ভোকেশনাল)।

এরপর বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি নেন তিনি।
স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে বেলায়েতের সংসার। কাজ করেন দৈনিক করতোয়া প্রত্রিকায় গাজীপুরের শ্রীপুর প্রতিনিধি হিসেবে।

মন্তব্য

p
উপরে