× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
13 members of question paper fraud ring arrested
hear-news
player
print-icon

প্রাথমিকের প্রশ্নপত্র জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্য আটক

প্রাথমিকের-প্রশ্নপত্র-জালিয়াতি-চক্রের-১৩-সদস্য-আটক
প্রশ্ন ফাঁস জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। ছবি: সংগৃহীত
জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রাণবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস জানান, রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামানের নির্দেশনায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে দুপুরে জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে মিজানুর রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র জালিয়াতি চক্রের ১৩ সদস্যকে আটক করেছে রাজবাড়ী জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

এ সময় জব্দ করা হয়েছে প্রশ্নের ফটোকপি, টাকা, ২০টি মোবাইল ফোন, ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইসসহ বিভিন্ন সরঞ্জাম।

শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় রাজবাড়ী জেলা পুলিশের গোয়েন্দা শাখায় এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রাণবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস।

আটক ব্যক্তিরা হলেন ইব্রাহীম হোসেন, সাগর আহম্মেদ, বিজয় বালা, নুরুল হক হাওলাদার, হারুন সরদার, রেজাউল করিম, আবু সালাম, মুনছুর মণ্ডল, রুবেল মাহমুদ, মিজানুর রহমান, রুমান হাসান, মাইনুল ইসলাম, ও ফরিদা বেগম।

আটক ব্যক্তিদের মধ্যে একজন নারী পরীক্ষার্থী ও পাঁচজন প্রাথমিক শিক্ষকও রয়েছেন।

চক্রের হোতা মাঈনুল ইসলাম হাওলাদারকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জালিয়াতির ঘটনা স্বীকার করেছেন।

পুলিশ জানায়, তিনি তার সোনালী ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে টাকা সংগ্রহ করেছে বলে জানায়। ঘটনার বিষয়ে তদন্ত চলছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত আছে।

জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রাণবন্ধু চন্দ্র কৃঞ্চ বিশ্বাস জানান, রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এম এম শাকিলুজ্জামানের নির্দেশনায় গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে দুপুরে জেলা শহরের নতুন বাজার এলাকার আবুল খায়েরের ছেলে মিজানুর রহমানের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে একটি মামলা হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
প্রশ্ন ফাঁস: কারণ দর্শাতে হবে বুয়েটের সেই শিক্ষককে
‘প্রশ্ন ফাঁস করে কেন সুনাম নষ্ট করতে চাইব’
প্রশ্ন ফাঁস: বুয়েটের সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা
ব্যাংক নিয়োগের প্রশ্নফাঁসের তদন্তে বুয়েট শিক্ষকের নাম
প্রশ্ন ফাঁস: ব্যাংক কর্মকর্তাসহ রিমান্ডে আরও ৩

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Teachers soaked in rain demand punishment for killers

বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষক হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি

বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষক হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি শিক্ষক উৎপলকে পিটিয়ে হত্যাকারীদের শাস্তির দাবি করেছেন অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা
মানববন্ধনে ফেডারেশন অব কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের সাভার অঞ্চলের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষক হত্যার মতো এমন নেক্কারজনক ঘটনার সাক্ষীও আমাদের হতে হচ্ছে, এটি কোনোভাবেই কাম্য নয়। আমাদের শিক্ষকরা আজ নিরাপদ বোধ করছেন না।’

ঢাকার সাভারে শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারের খুন হওয়ার ঘটনা কোনো ভাবেই মেনে নিতে পারছেন না তার সহকর্মী, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

তাই বৃষ্টিতে ভিজেই মহাসড়কে দাড়িয়ে শিক্ষক উৎপলের হত্যাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানিয়েছেন তারা।

সাভার উপজেলা পরিষদ গেটের সামনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এই মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়।

আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজী ইউনুছ আলী কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা ছাড়াও ফেডারেশন অব কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশন সাভারের আওতাধীন অন্তত ২১টি শিক্ষক সংগঠনের ১০০ জনের বেশি শিক্ষক এই কর্মসূচিতে অংশ নেন।

বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষক হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি

মানববন্ধনে ফেডারেশন অব কিন্ডারগার্টেন অ্যাসোসিয়েশনের সাভার অঞ্চলের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘শিক্ষার্থীর হাতে শিক্ষক হত্যার মতো এমন নেক্কারজনক ঘটনার সাক্ষীও আমাদের হতে হচ্ছে, এটি কোনোভাবেই কাম্য নয়। আমাদের শিক্ষকরা আজ নিরাপদ বোধ করছেন না।’

তিনি বলেন, ‘আমরা সরকারকে ধন্যবাদ জানাই দেরিতে হলেও ঘটনার মূল আসামি জিতুকে গ্রেপ্তার করার জন্য। একই সঙ্গে দাবি জানাই, দ্রুত এই মামলার বিচার কার্য শেষ করে অপরাধীর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিতের। পাশাপাশি নিহত শিক্ষকের পরিবারকে আর্থিক ক্ষতিপূরণের দাবি জানাই।’

মানববন্ধনে তিনি সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে শিক্ষকদের সঙ্গে অমানবিক আচরণের প্রতিবাদ জানিয়ে সকল শিক্ষকদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবিও করেন।

মানববন্ধনে হাজী ইউনুস আলী কলেজের অধ্যক্ষ সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের অন্যতম দাবি, দ্রুত ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন করে অভিযুক্ত শিক্ষার্থী জিতুর সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা, যাতে আর কখনও কোনো শিক্ষকের উপর এমন ন্যাক্কারজনক হামলার সাহস কেউ দেখাতে না পারে। একই সঙ্গে আর কেউ এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত আছে কিনা সেটিও খতিয়ে দেখার দাবি আমাদের।’

বৃষ্টিতে ভিজে শিক্ষক হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি
ছাত্রের মারধরে নিহত শিক্ষক উৎপল কুমার। ছবি: সংগৃহীত

একই দাবিতে আশুলিয়ার জামগড়া এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

এর আগে গত শনিবার দুপুরে আশুলিয়ার চিত্রশাইল এলাকার হাজী ইউনুছ আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজ মাঠে ছাত্রীদের ক্রিকেট টুর্নামেন্ট চলাকালীন সময়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক উৎপল কুমারকে স্টাম্প দিয়ে পিটিয়ে আহত করে একই প্রতিষ্ঠানের দশম শ্রেণির ছাত্র আশরাফুল ইসলাম জিতু। পরদিন রোববার সকালে সাভারের একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। একই দিন উৎপলের বড় ভাই অসীম কুমার আশুলিয়া থানায় জিতুকে প্রধান আসামিসহ অজ্ঞাত তিন থেকে চারজনের নামে হত্যা মামলা করেন।

পরে বুধবার কুষ্টিয়ার কুমারখালি থেকে জিতুর বাবা উজ্জ্বল হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। ওই মামলায় তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। একই দিন রাতে গাজীপুর থেকে মামলার প্রধান আসামি জিতুকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

শিক্ষক উৎপলের বাড়ি সিরাজগঞ্জ জেলার উল্লাপাড়া থানার এঙ্গেলদানি গ্রামে। তিনি প্রায় ১০ বছর ধরে হাজী ইউনুস আলী স্কুল অ্যান্ড কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক ছিলেন। পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটির শৃঙ্খলা কমিটির সভাপতি হিসেবেও তিনি দায়িত্ব পালন করছিলেন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Crimes against humanity Shafiuddin of Habiganj was sentenced to death

মানবতাবিরোধী অপরাধ: হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড

মানবতাবিরোধী অপরাধ: হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাইনবোর্ড। ফাইল ছবি
প্রসিকিউশন আসামিদের বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যাসহ বিভিন্ন অপরাধে দুটি অভিযোগ আনে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে বৃহস্পতিবার মামলার রায় ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

এ মামলায় অপর তিন আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। খালাস পেয়েছেন অন্য একজন।

ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি শাহিনুর ইসলামসহ তিন সদস্যদের ট্রাইব্যুনাল বৃহস্পতিবার এ রায় দেয়।

মামলায় আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে তাজুল ইসলাম, জাহেদ মিয়া ও ছালেক মিয়াকে। খালাস পেয়েছেন সাব্বির আহমেদ।

এর আগে গত ১৭ মে মামলাটির যুক্তিতর্ক শেষ করে রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন। আসামিপক্ষে ছিলেন আব্দুস সাত্তার পালোয়ান ও গাজী তামিম।

২০১৮ সালের ২১ মার্চ এ মামলায় পাঁচজনের নামে তদন্ত সম্পন্ন করে তদন্ত সংস্থা। পরে তারা প্রসিকিউটশনের কাছে প্রতিবেদন জমা দেয়।

প্রসিকিউশন আসামিদের বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যাসহ বিভিন্ন অপরাধে দুটি অভিযোগ আনে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে রায়ের জন্য মামলাটি অপেক্ষমাণ রাখে ট্রাইব্যুনাল।

আরও পড়ুন:
মানবতাবিরোধী অপরাধ: সুনামগঞ্জের ১১ জনের বিচার শুরুর নির্দেশ
বিচার শেষে রায়ের অপেক্ষা
জামায়াত নেতার মৃত্যুদণ্ড: সাতক্ষীরায় আনন্দ মিছিল
জামায়াত নেতা খালেকসহ দুজনের মৃত্যুদণ্ড
মানবতাবিরোধী অপরাধ: ফাঁসির রায়ের ৭ বছর পর কায়সারের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The housewife was killed less than a week after the wedding

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’ বিয়ের এক সপ্তাহের মধ্যেই খুন হলেন দিতি খাতুন। ছবি: সংগৃহীত
নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত চলছে। কী কারণে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে তা এখনও জানা যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে বিয়ের এক সপ্তাহের মাথায় নববধূকে বাবার বাড়িতে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

নালিতাবাড়ী পৌর এলাকার কালিনগর মহল্লায় বুধবার রাত ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জড়িতের অভিযোগে পুলিশ স্থানীয় রহুল আমিন নামের এক যুবক ও তার ভাবিকে গ্রেপ্তার করেছে। ২৫ বছরের রহুল মাদক সেবন করতেন বলে জানা গেছে।

১৮ বছরের দিতি খাতুন কালিনগর মহল্লার মুছা মিয়ার মেয়ে।

মেয়েকে হত্যার ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে হত্যা মামলা করেন মুছা মিয়া।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করে নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘আসামিদের আজ দুপুরে আদালতে তোলা হবে।’

স্বজনদের বরাতে ওসি জানান, এক সপ্তাহ আগে গত বৃহস্পতিবার উপজেলার চেল্লাখালী সন্যাসীভিটা এলাকার খাইরুল ইসলামের সঙ্গে দিতির বিয়ে হয়। বিয়ের পর দিতিকে তার বাবার বাড়ি কালিনগর রেখে খাইরুল কর্মস্থল ঢাকায় চলে যান।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে একই এলাকার রহুল আমিন তার ভাবি রাহেলাকে নিয়ে দিতিদের বাড়িতে যান। এ সময় রাহেলার ডাক শুনে দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে রহুল দা দিয়ে দিতির মাথায় কুপিয়ে পালিয়ে যান।

পরে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠাতে পরামর্শ দেন। ময়মনসিংহ নেয়ার পথে রাত সাড়ে ১০টার দিকে নকলা উপজেলায় দিতির মৃত্যু হয়।

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’
গৃহবধূকে খুনের মামলায় গ্রেপ্তার রুহুল আমিন। ছবি: নিউজবাংলা

ওসি বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাহেলাকে আটক করে ও রহুল আমিনকে খুঁজতে থাকে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে রহুল আমিন নিজেই ঘটনাস্থলে পুলিশের কাছে এসে হত্যার কথা স্বীকার করে।’

এ ঘটনায় দিতির মা মনোয়ারা বেগম জানান, রাতের খাওয়া শেষে তারা ঘুমাতে যাচ্ছিলেন। এ সময় রাহেলা এসে ঘরের দরজা খুলতে বলেন। দিতি দরজা খোলা মাত্রই রহুল তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যান। পরে রাহেলাও চলে যান। তখন পুলিশে খবর দেয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘কী কারণে তারা আমার মেয়েডারে মারল আমরা জানি না। আমার মেয়ের খুনিদের বিচার চাই।’

এদিকে রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নালিতাবাড়ী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আফরোজা নাজনীন ও ওসি বাদল।

ওসি বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত চলছে। কী কারণে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে তা এখনও জানা যায়নি। তবে দ্রুতই আমরা আসল ঘটনা উদ্ধার করতে পারব।মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
ছোট ভাইকে খুনের কথা বলে যুবকের আত্মসমর্পণ
জমি নিয়ে বিরোধে ভাইকে ‘খুন’
‘বন্ধুর ছুরিকাঘাতে’ কলেজছাত্র খুন
কুষ্টিয়ায় ২০ দিনে ৯ খুন
ভাটারায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে তরুণ খুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Shoe garland around teachers neck Lawyers want judicial inquiry

শিক্ষকের গলায় জুতার মালা: বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান আইনজীবী

শিক্ষকের গলায় জুতার মালা: বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান আইনজীবী নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনায় ক্ষোভ ছড়িয়েছে দেশব্যাপী। অলংকরণ: মামুন হোসাইন/নিউজবাংলা
আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আদালতের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা রিট দায়েরের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছি। আজকেই রিটটি দায়ের করে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে।’

নড়াইলে কলেজশিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবারই রিটটি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আদালতের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা রিট দায়েরের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছি। আজকেই রিটটি দায়ের করে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে।’

এর আগে গত ২৮ জুন এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আদেশ চেয়ে বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন এই আইনজীবী। পরে বিষয়টি নিয়ে রিট করতে পরামর্শ দেয় হাইকোর্ট।

প্রেক্ষাপট

ফেসবুকে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার সমর্থনে কলেজের এক হিন্দু শিক্ষার্থীর পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে গত ১৮ জুন দিনভর নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, সহিংসতা চলে। গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয় ওই শিক্ষার্থীর পক্ষ নিয়েছেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস।

এরপর পুলিশের পাহারায় বিকেল ৪টার দিকে স্বপন কুমার বিশ্বাসকে ক্যাম্পাসের বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় তাকে দাঁড় করিয়ে গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেয় একদল ব্যক্তি।

শিক্ষক স্বপন কুমার হাত উঁচিয়ে ক্ষমা চাইতে থাকেন। পরে তাকে তুলে নেয়া হয় পুলিশের গাড়িতে।

পুলিশের সামনে এমন ঘটনায় দেশজুড়ে তৈরি হয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে গলায় জুতার মালা দিয়ে অপদস্থ করার ঘটনায় কারও দায়িত্বে গাফিলতি আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে বুধবার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে দেখা গেছে, স্বপন কুমারকে জুতার মালা পরানোর পর তার আশপাশে পুলিশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাসহ বাহিনীর অন্তত ১০ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে যেখানে দাঁড় করিয়ে জুতার মালা পরানো হয়, তার তিন-চার হাত দূরেই দৃশ্যত নির্বিকার ভঙ্গিতে দাঁড়িয়েছিলেন নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শওকত কবীর।

আরও পড়ুন:
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ
শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার
শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাবিতে আমরণ অনশন
শিক্ষক হত্যায় জিতুর বাবা রিমান্ডে
শিক্ষক হত্যা: আলামত জব্দে দেরি, আসামির বয়সও ভুল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
UP members brother stabbed to death in Sitakunda

ইউপি সদস্যের ভাইকে ‘ছুরিকাঘাতে হত্যা’

ইউপি সদস্যের ভাইকে ‘ছুরিকাঘাতে হত্যা’
সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বনিক বলেন, ‘মমিনুল হক ছেলে ও ভাতিজাকে নিয়ে গরু কিনতে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে বাংলাবাজারে চলন্ত রিকশায় তাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে দুর্বৃত্তরা। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে ইউনিয়ন পরিষদের এক সদস্যের ভাইকে ছুরিকাঘাতে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার মুরাদপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজার এলাকায় বুধবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

নিহত ৪৫ বছর বয়সী মমিনুল হক মুরাদপুর ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য আকবর হোসেনের বড় ভাই। মমিনুল পেশায় কৃষক ছিলেন।

সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বনিক এসব তথ্য নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘মমিনুল হক ছেলে ও ভাতিজাকে নিয়ে গরু কিনতে গিয়েছিল। ফেরার পথে বাংলাবাজারে চলন্ত রিকশায় তাকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে দুর্বৃত্তরা। পরে তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

তার ওপর কারা, কেন হামলা করেছে তা পুলিশ বের করার চেষ্টা করছে বলেও জানান তিনি।

এ ঘটনায় ইউপি সদস্য আকবর হোসেন বলেন, ‘এটি একটি পূর্বপরিকল্পিত হত্যা। সন্ত্রাসীরা আমার ভাইকে কুপিয়ে চলে গেছে। তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
শিক্ষক হত্যায় জিতুর বাবা রিমান্ডে
ছাগলের জন্য বড় ভাইকে হত্যায় গ্রেপ্তার ছোট
হত্যা মামলার আসামিদের বিচারের দাবিতে মহাসড়ক অবরোধ
শিক্ষক হত্যা: আলামত জব্দে দেরি, আসামির বয়সও ভুল
শিক্ষক উৎপল হত্যা: তৃতীয় দিনেও সড়কে শিক্ষার্থীরা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Marriage before age with the permission of any court High Court

বয়সের আগে বিয়ে কোন আদালতের অনুমতিতে: হাইকোর্ট

বয়সের আগে বিয়ে কোন আদালতের অনুমতিতে: হাইকোর্ট
বয়স নির্ধারণে বিশেষ প্রেক্ষাপটে ছাড় পাবেন এমন বিধান রেখে সংসদে ‘বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭’ হয়েছে। তাতে নারীদের মতো পুরুষরাও বিশেষ প্রেক্ষাপটে ১৮ বছরের আগেই বিয়ে করার সুযোগ পাবেন।

বাল্যবিয়ে নিরোধ আইনের ১৯ ধারা অনুযায়ী বিশেষ ক্ষেত্রে প্রাপ্ত বয়স হওয়ার আগে অভিভাবকের সম্মতিতে বিয়ের অনুমতির জন্য কোন আদালতে যেতে হবে, তা নির্ধারণের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছে হাইকোর্ট।

এ-সংক্রান্ত রিটে সম্পূরক আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি সরদার মো. রাশেদ জাহাঙ্গীরের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে আইনসচিবসহ সংশ্লিষ্টদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ইলিয়াস আলী মণ্ডল। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল তুষার কান্তি রায়।

ইলিয়াস আলী জানান, বয়স নির্ধারণে বিশেষ প্রেক্ষাপটে ছাড় পাবেন এমন বিধান রেখে সংসদে ‘বাল্যবিয়ে নিরোধ আইন ২০১৭’ হয়েছে। তাতে নারীদের মতো পুরুষরাও বিশেষ প্রেক্ষাপটে ১৮ বছরের আগেই বিয়ে করার সুযোগ পাবেন।

বিভিন্ন মহলের আপত্তির মধ্যেই ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ মেয়েদের বিয়ের বয়সে ছাড়ের বিধান রেখে আলোচিত ‘বাল্যবিয়ে নিরোধ বিল-২০১৬’ সংসদে ওঠে ২০১৬ সালের ৮ ডিসেম্বর। ব্রিটিশ আমলে প্রণীত ‘চাইল্ড ম্যারেজ রেসট্রেইন্ট অ্যাক্ট-১৯২৯’ বাতিল করে নতুন আইন করতে বিলটি সংসদে তোলা হয়।

কী বলা হয়েছে বিলে

পাস হওয়া বিলে বলা হয়েছে, আইনের অন্যান্য বিধানে যা কিছুই থাকুক না কেন, কোনো বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্ক সর্বোত্তম স্বার্থে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এবং বাবা-মার সম্মতি অনুযায়ী বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বিয়ে হলে তা এ আইনের অধীন অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

যা আগে অপ্রাপ্তবয়স্কের ক্ষেত্রে শুধু নারীদের কথা উল্লেখ ছিল। এ ছাড়া ‘বিশেষ প্রেক্ষাপট’ বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত রাখা হয়েছে।

আইনে মেয়েদের বিয়ের ন্যূনতম বয়স আগের মতো ১৮ বছর রাখা হলেও ‘বিশেষ প্রেক্ষাপটে’ অপ্রাপ্তবয়স্কদের বিয়ের সুযোগ রাখা হয়। এতে ক্ষেত্রবিশেষে ১৮ বছরের আগেও বিয়ে দেওয়া যেতে পারবে।

বিশেষ প্রেক্ষাপটে অপ্রাপ্তবয়স্ক সর্বোত্তম স্বার্থে আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী এবং বাবা-মার সম্মতি অনুযায়ী বিধির মাধ্যমে নির্ধারিত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে বিয়ের কার্যক্রম হলে তা এ আইনের অধীন অপরাধ বলে গণ্য হবে না।

আইনজীবী ইলিয়াস আলী বলেন, ‘এখন তাহলে প্রশ্ন হলো এখানে কোন আদালত তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। এখন অভিভাবকরা কোন আদালতে যাবেন। নারী-শিশু আদালত, বিশেষ আদালত নাকি কোথায়। আবার এ বিষয়ে কোনো বিধিও করা হয়নি। তা হলে যদি কেউ তার সন্তানকে বিয়ে দিতে বা করাতে চান কোন আদালতে যাবেন, সেই প্রশ্নে রিট করা হয়।’

আইনটি ২০১৭ সালের ১১ মার্চ গেজেট প্রকাশ করে।

আরও পড়ুন:
জুরাইন হামলায় রিমান্ডের আদেশ কেন বেআইনি নয়: হাইকোর্ট
রিকুইজিশন গাড়ি ব্যক্তিস্বার্থে ব্যবহার নয়, রাখা যাবে ৭ দিন: হাইকোর্ট
পেটে গজ রেখে সেলাই: রিট শুনবে হাইকোর্ট
পাটের ব্যাগ ব্যবহার আইন কেন মানা হচ্ছে না: হাইকোর্ট
১০৪ শিশুর পরিবারকে ১৫ লাখ করে দেয়ার নির্দেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Teacher harassment Questions of heroic freedom fighters about the indifference of the police

শিক্ষক নিপীড়ন: পুলিশের নির্লিপ্ততা নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশ্ন

শিক্ষক নিপীড়ন: পুলিশের নির্লিপ্ততা নিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশ্ন
সাভারে শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে আরেক শিক্ষককে পরিকল্পিতভাবে নিগ্রহ করার ঘটনায় উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। সংগঠনটির পক্ষ থেকে দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানানো হয়েছে।

নড়াইলে শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে গলায় জুতার মালা দিয়ে অপদস্থ করার সময় পুলিশের নির্লিপ্ততা ও দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ করেছে সেক্টর কমান্ডারস ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। পুলিশের উপস্থিতিতে এই কাজ আতঙ্কজনক বলে মন্তব্য করেছে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংগঠনটি।

বুধবার সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১-এর যুগ্ম প্রচার সম্পাদক মুঈদ হাসান স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বলা হয়, ‘সাভারে একজন শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যা ও নড়াইলে আরেক শিক্ষককে পরিকল্পিতভাবে নিগ্রহ করার ঘটনায় চরম উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করছে সেক্টর কমান্ডারস্‌ ফোরাম-মুক্তিযুদ্ধ ’৭১। সংগঠনের পক্ষ থেকে দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানানো হচ্ছে।’

সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘এই দুই দুঃখজনক ঘটনা এবং সাম্প্রতিকালের আরও কিছু উদ্বেগজনক উগ্র সাম্প্রদায়িক ঘটনা প্রমাণ করে, যে প্রতিশ্রুতি নিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল সেই রাষ্ট্রের নীতি-নৈতিকতা আজ কতটা বিপন্নের মুখোমুখি। এসব ঘটনা আরও প্রমাণ করে যে, বাংলাদেশকে কোনো মহল পরিকল্পিতভাবে অন্ধকারের দিকে ধাবিত করছে।

‘আরও উদ্বেগজনক যে, নড়া‌ইলে শিক্ষকের গলায় জুতার মালা পরানোর চরম অমানবিক ঘটনাটি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু সদস্যের উপস্থিতিতে ঘটেছে। অন্যদিকে একজন ছাত্রের বর্বরতায় প্রাণ হারিয়েছেন আরেক শিক্ষক।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘পালাক্রমিক এসব ঘটনা মুক্তিযুদ্ধবিরোধী উগ্র সাম্প্রদায়িক শক্তির সুচতুর ও পরিকল্পিত অপচেষ্টা। অনেক ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নির্লিপ্ততা ও দায়িত্বে অবহেলা আরও বেশি আতঙ্কজনক, যা উগ্র সাম্প্রদায়িক ও অনৈতিক শক্তিকে উৎসাহিত করবে। ‘সব ধর্মের সহাবস্থান ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার স্বার্থে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে হবে।

‘আশুলিয়ায় শিক্ষক হত্যা ও নড়াইলে কলেজ অধ্যক্ষ নিগ্রহের ঘটনার দ্রুত সরকারি পদক্ষেপ দাবি করছি। একইসঙ্গে দোষীদের অবিলম্বে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।’

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেছেন যেসব বীর মুক্তিযোদ্ধা

সেক্টর কমান্ডারস ফোরামের নির্বাহী সভাপতি মো. নুরুল আলম, সহ-সভাপতি ম. হামিদ ও অধ্যাপক ডা. আমজাদ হোসেন, মহাসচিব হারুন হাবীব, যুগ্ম-মহাসচিব আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারী, আব্দুল মাবুদ ও শাহজাহান মুখ্য বেনু, সাংগঠনিক সম্পাদক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আলী সিকদার (অব.), কোষাধ্যক্ষ ডা. মনসুর আহমদ, কেন্দ্রীয় নারী কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক লায়লা হাসান ও ইফফাত আরা নার্গীস, সাংস্কৃতিক সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস লাকি, বরিশাল বিভাগীয় সভাপতি প্রদীপ কুমার ঘোষ, খুলনার বিভাগীয় সাধারণ সম্পাদক খয়রাত হোসেন, রাজশাহীর বিভাগীয় সভাপতি আবুল হাসান খন্দকার এবং কেন্দ্রীয় সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় সদস্য সচিব বেদারুল আলম চৌধুরী বেদার।

আরও পড়ুন:
শিক্ষককে জুতার মালা: প্রধান অভিযুক্ত রনি গ্রেপ্তার
অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা ওসির সামনেই
শিক্ষককে পিটিয়ে হত্যায় জিতু গ্রেপ্তার
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ
শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

মন্তব্য

p
উপরে