× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Toll on Padma bridge is 100 to 6 thousand rupees
hear-news
player
print-icon

পদ্মা সেতুতে বাইক ১০০, বড় বাসে ২৪০০ টাকা

পদ্মা-সেতুতে-বাইক-১০০-বড়-বাসে-২৪০০-টাকা
প্রায় সব কাজ শেষে পদ্মা সেতুর উদ্বোধন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। ছবি: নিউজবাংলা
দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দাদের সড়কপথে রাজধানীর সঙ্গে যোগাযোগের দুর্ভোগ লাঘবে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে অপেক্ষায় আছে মানুষ। সেতুর নির্মাণ প্রায় শেষ। জুনের শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেদিন সময় দেবেন, সেদিনই সেতু উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

পদ্মা সেতু চলাচলের ক্ষেত্রে কী হারে টোল দিতে হবে তা নির্ধারণ করেছে সরকার। নদী পারাপারে যানবাহনভেদে টোল ঠিক করা হয়েছে সর্বনিম্ন ১০০ টাকা থেকে ৬ হাজার টাকার বেশি।

রাষ্ট্রপতির আদেশে মঙ্গলবার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সেতু বিভাগের উপসচিব আবুল হাসানের সই করা প্রজ্ঞাপনে এ কথা বলা হয়েছে।

বর্তমানে ফেরিতে নদী পারাপারে যে হারে মাশুল দিতে হয়, সেতুতে তা দেড় গুণ বা আশেপাশে বাড়ানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, পদ্মা সেতু পাড়ি দিতে মোটরসাইকেলকে দিতে হবে ১০০ টাকা। ফেরিতে এই খরচ ৭০ টাকা।

প্রাইভেট কার ও সাধারণ জিপে টোল ঠিক করা হয়েছে ৭৫০ টাকা। ফেরিতে বর্তমানে এই ধরনের গাড়ি পারাপারে দিতে হচ্ছে ৫০০ টাকা।

পিকআপ ও বিলাসবহুল জিপ পারাপারে বর্তমানে দিতে হচ্ছে ৮০০ টাকা। সেটি বাড়িয়ে করা হয়েছে ১ হাজার ২০০ টাকা।

মাইক্রোবাস পারাপারে ফেরিতে লাগে ৮৬০ টাকা। সেটি বাড়িয়ে সেতুতে করা হয়েছে ১ হাজার ৩০০ টাকা।

৩১ আসন বা এর কম আসনের ছোট বাসের জন্য দিতে হবে ১ হাজার ৪০০ টাকা। ফেরিতে এসব গাড়িকে দিতে হচ্ছে ৯৫০ টাকা।

মাঝারি বাসের টোল ফেরিতে ১ হাজার ৩৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে দুই হাজার টাকা।

বড় বাসে ফেরি পারাপারে লাগছে ১ হাজার ৫৮০ টাকা। সেটি বাড়িয়ে করা হয়েছে ২ হাজার ৪০০ টাকা।

৫ টনের ট্রাক এ সেতু পাড়ি দিলে গুনতে হবে ১ হাজার ৬০০ টাকা। ৫ টন পর্যন্ত এই ট্রাক পারাপারে ফেরিতে দিতে হচ্ছে ১ হাজার ৮০ টাকা।

৫ টন থেকে ৮ টনের মাঝারি ট্রাকের জন্য দিতে হবে ২ হাজার ১০০ টাকা, যা ফেরিতে লাগছে ১ হাজার ৪০০ টাকা।

৮ টন থেকে ১১ টনের মাঝারি ট্রাকের টোল ধরা হয়েছে ২ হাজার ৮০০ টাকা। ফেরিতে এই ধরনের গাড়ি পারাপারে লাগছে ১ হাজার ৮৫০ টাকা।

থ্রি এক্সেলের ট্রাক পারাপারে টোল ঠিক করা হয়েছে সাড়ে ৫ হাজার টাকা। ফেরিতে এই ধরনের গাড়ি পারাপারে লাগছে ৩ হাজার ৯৪০ টাকা।

মালবাহী ট্রেইলারের (চার এক্সেল) ৬ হাজার টাকা। ফেরিতে এই ধরনের গাড়ি পারাপারে লাগে ৪ হাজার টাকা।

চার এক্সেলের ওপরে মালবাহী ট্রেইলারের জন্য প্রতি এক্সেলে দেড় হাজার টাকা যোগ হবে।

দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দাদের সড়কপথে রাজধানীর সঙ্গে যোগাযোগের দুর্ভোগ লাঘবে এক যুগেরও বেশি সময় ধরে অপেক্ষায় আছে মানুষ। সেতুর নির্মাণ প্রায় শেষ। জুনের শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেদিন সময় দেবেন, সেদিনই সেতু উদ্বোধন করা হবে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

সেতুতে শেষ স্প্যানটি বসানো হয়েছে প্রায় দেড় বছর আগে। এখন চলছে সেতুর ওপরের সড়কে পিচ ঢালাইয়ের কাজ।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটারের মূল সেতু ছাড়াও ৩ দশমিক ৬৮ কিলোমিটারের ভায়াডাক্ট বা সংযোগ সেতু মিলিয়ে সেতুর মোট দৈর্ঘ্য ৯ দশমিক ৮৩ কিলোমিটার।

প্রকল্পের অগ্রগতি

সেতুর কাজ হয়েছে কয়েকটি ভাগে। মূল সেতু, নদীশাসন, সংযোগ সড়ক ও প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ, ভূমি অধিগ্রহণ ও পুনর্বাসন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মূল সেতুর নির্মাণ ও নদীশাসন কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। এরপর ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে বসানো হয় প্রথম স্প্যান।

এর মধ্যে মূল সেতু ও নদীশাসন ছাড়া সব কাজ এরই মধ্যে শেষ হয়েছে। সংযোগ সড়ক খুলে দেয়া হয়েছে আরও আগে।

মূল সেতুসহ সব কাজ আগামী জুনের মধ্যে শেষ হলেও নদীশাসন কাজ শেষ হতে পারে বছরের শেষ নাগাদ, যদিও কাজ শেষ করার বিষয়ে সময় বেঁধে দেয়া রয়েছে। তবে সেতু প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত। এতে ঠিকাদারের দেনাপাওনা বুঝিয়ে দেয়া এবং সেতুতে কোনো সমস্যা হলে ঠিকাদার যাতে ঠিক করে দিতে পারেন, এ জন্য শেষ এক বছর রাখা হয়েছে।

এপ্রিল শেষে পদ্মার মূল সেতুর কাজ শেষ হয়েছে ৯৮ শতাংশের বেশি। সব মিলিয়ে প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে ৯৩ দশমিক ৫০ শতাংশ।

৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকার এ প্রকল্পে এপ্রিল পর্যন্ত খরচ হয়েছে ২৭ হাজার ৩৪০ কোটি টাকা। অর্থাৎ আর্থিক অগ্রগতি হয়েছে ৯০ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

আগামী জুনের মধ্যেই সেতুর কাজ শেষ হবে বলে আগামী অর্থবছরে এই প্রকল্পে বড় ধরনের বরাদ্দ রাখা হচ্ছে না।

সেতুর খরচের আদ্যোপান্ত

২০০৭ সালে একনেকে পাস হওয়া পদ্মা সেতু প্রকল্পের ব্যয় ছিল ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা। তখন চার লেনের কংক্রিটের সেতু করার চিন্তা ছিল।

পরে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে কংক্রিটের বদলে স্টিল স্ট্রাকচার দ্বিতল সেতু করার পরিকল্পনা করা হয়। সড়ক সেতুর নিচ দিয়ে যাবে ট্রেন।

২০১১ সালে ব্যয় বাড়িয়ে করা হয় ২০ হাজার ৫০৭ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে দ্বিতীয় দফা সংশোধনের পর ব্যয় দাঁড়ায় ২৮ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা। বর্তমানে ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

প্রকল্প শেষ হওয়ার আগে আরেক দফা প্রকল্প প্রস্তাব সংশোধন করতে হবে।

প্রকল্প গ্রহণের আগে এক সমীক্ষায় বলা হয়, পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ১ দশমিক ২৩ শতাংশ হারে জিডিপি (মোট দেশজ উৎপাদন) বৃদ্ধি পাবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জিডিপি বাড়বে অতিরিক্ত ২ দশমিক ৩ শতাংশ হারে। মোংলা বন্দর ও বেনাপোল স্থলবন্দরের সঙ্গে রাজধানী এবং বন্দরনগরী চট্টগ্রামের সরাসরি যোগাযোগ স্থাপিত হবে।

দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ–পশ্চিমাঞ্চলের ১৯টি জেলাকে সারা দেশের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত করবে এ সেতু।

শুরুতে বিশ্বব্যাংক, এডিবি, আইডিবিসহ দাতাদের কাছ থেকে ঋণ নিয়ে সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়। তবে সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতি চেষ্টার অভিযোগ ওঠার পর বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে তৈরি হয় টানাপড়েন।

একপর্যায়ে দাতারা এই সেতু প্রকল্প থেকে সরে গেলে সরকার নিজ অর্থায়নে সেতু করার সিদ্ধান্ত নেয়। এই সেতু করতে সেতু বিভাগকে মোট ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছে সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ।

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুর নিচ দিয়ে রাতে চলছে ফেরি
পদ্মা সেতুতে টোল তুলবে চায়না মেজর ও কেইসি
পদ্মা সেতু উদ্বোধন পেছাচ্ছে যে কারণে
জুনে নয়, পদ্মা সেতু চালু বছরের শেষে
পদ্মা সেতুর হিসাব মিলবে না যে সড়কে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The people of Chandpur do not sleep at night when the power plant is closed

বন্ধ বিদ্যুৎকেন্দ্র, রাতে ঘুম নেই চাঁদপুরবাসীর

বন্ধ বিদ্যুৎকেন্দ্র, রাতে ঘুম নেই চাঁদপুরবাসীর ১৫০ মেগাওয়াট উৎপাদনক্ষমতা সম্পন্ন বিদ্যুৎকেন্দ্রটিতে বর্তমানে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা
গ্যাসের সমস্যা নিরসন না হওয়া পর্যন্ত এমন অবস্থা থাকবে বলে জানান চাঁদপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান।

বেড়েছে গরম। এর মধ্যেই দফায় দফায় লোডশেডিং। এ অবস্থায় রাতের বেলায় ঘুমানোই কঠিন হয়ে পড়েছে চাঁদপুরবাসীর। চাঁদপুর শহর ও জেলার বিভিন্ন উপজেলায় খোঁজ নিয়ে এমন পরিস্থিতির কথা জানা গেছে।

গত কয়েক দিনের লোডশেডিংয়ে চাঁদপুরের জনজীবন অতিষ্ঠ হওয়া ছাড়াও ব্যাহত হচ্ছে অফিস, ব্যাংক-বীমা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম। পড়াশোনায় ব্যাঘাত ঘটছে শিক্ষার্থীদের।

চাঁদপুর শহরের মাদ্রসা রোড এলাকার শিক্ষার্থী শারমিন আক্তার ও মাহিম বলেন, ‘দুদিন ধরে ঘন ঘন বিদ্যুৎ যাচ্ছে। এতে আমরা পড়াশোনা করতে পারছি না। প্রচণ্ড গরমে বিদ্যুৎ না থাকায় ঘরেও বসে থাকা যাচ্ছে না। বিশেষ করে, রাতে লোডশেডিং বেশি হওয়ায় ঘুমানোই যাচ্ছে না। আমরা এই সমস্যার নিরসন চাই।’

শহরের নাজির পাড়া এলাকার ব্যবসায়ী মামুন তালুকদার বলেন, ‘একবার বিদ্যুৎ গেলে ২-৩ ঘণ্টার মধ্যেও আসে না। কিন্তু আমাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম বিদ্যুৎ ছাড়া চালানো সম্ভব না। লোকজন এসে ফিরে যাচ্ছে।’

মামুন জানান, লোডশেডিংয়ে বাসা বাড়িতে বয়স্ক ও ছোট শিশুদেরই বেশি সমস্যা হচ্ছে। একবার বিদ্যুৎ গেলে তাদেরকে ঘরে আটকে রাখা কষ্ট হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, চাঁদপুর শহরে অবস্থিত ১৫০ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতাসম্পন্ন বিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন বন্ধ থাকাই এই অঞ্চলে লোডশেডিং বাড়ার অন্যতম কারণ। প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে বন্ধ রয়েছে এটি। যদিও ডাকাতিয়ার অপর প্রান্তে ইচলী এলাকার ‘চাঁদপুর পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড’ নামে একটি প্রাইভেট বিদ্যুৎকেন্দ্রে অল্প পরিসরে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে। তবে তা সীমিত।

পর্যবেক্ষণ বলছে, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিদ্যুৎ সংকট এত প্রকট ছিল না চাঁদপুরে। বর্তমানে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড চাহিদার ৬০-৭০ ভাগ সরবরাহ পেলেও পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি পাচ্ছে অর্ধেকের মতো। তাই গত তিন দিন ধরে বিদ্যুতের ঘন ঘন আসা-যাওয়া লক্ষ্য করা গেলেও সহসা এই সমস্যা থেকে উত্তরণের কোনো নিশ্চয়তা দিতে পারেনি স্থানীয় বিদ্যুৎ বিভাগ।

চাঁদপুর বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মিজানুর রহমান বলেন, ‘উৎপাদন সমস্যার কারণে সারা দেশেই বিদ্যুৎ সল্পতা আছে। চাঁদপুরে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের আওতাধীন এলাকায় প্রতিদিন দিনের বেলায় ১৮ মেগাওয়াট ও রাতে ২২ মেগাওয়াট বিদ্যুতের চাহিদা। জাতীয় গ্রিড থেকে সরবরাহ কম পাওয়ায় পরিস্থিতি সামাল দিতে লোডশেডিং হচ্ছে। বর্তমানে দিনে ১২ মেগাওয়াট আর রাতে ১৪ মেগাওয়াট দেয়া হচ্ছে।’

গ্যাসের সমস্যা নিরসন না হওয়া পর্যন্ত এমন অবস্থা থাকবে বলে জানান মিজানুর রহমান।

আরও পড়ুন:
প্রচণ্ড লোডশেডিং হচ্ছে, এটা ভয়াবহ: ফখরুল
এত লোডশেডিং কেন, জানালেন প্রধানমন্ত্রী
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কেবল অপারেটরের মৃত্যু
বিদ্যুৎ আসার অপেক্ষা আর যাওয়ার আতঙ্ক রাজশাহীতে
চাহিদার অর্ধেক সরবরাহে বারবার বিদ্যুৎ যাচ্ছে বগুড়ায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The effects of the Russia Ukraine war are felt in the country Quader

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব দেশে পড়তে পাড়ে: কাদের

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব দেশে পড়তে পাড়ে: কাদের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
‘যারা ঘরে বসে লিপ সার্ভিস দেয় তাদের ত্রাণ কার্যক্রম হলো এক ধরনের ত্রাণ বিলাস। বিএনপির মধ্যে কোনো ভদ্রতা নেই। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও যে অসভ্য ভাষায় কথা বলে তা কাম্য নয়।’

সারা বিশ্বে রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘রাশিয়া ও ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব বাংলাদেশে পড়তে পাড়ে।’

বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে মঙ্গলবার বন্যা কবলিত ১০ জেলার অসহায় মানুষের হাতে শেখ হাসিনার পক্ষে থেকে ঈদুল আজহা উপলক্ষে নগদ অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও উপকমিটি।

যেকোনো বিপদে মানুষের পাশে দাঁড়ানো আওয়ামী লীগের ইতিহাস বলে মন্তব্য করেছেন সেতুমন্ত্রী। বলেন, ‘দেশের যেকোনো দুর্যোগে সবার আগে মানুষ পাশে দাঁড়াতে ছুটে যায় আওয়ামী লীগ।’

বিএনপির সমালোচনা করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘যারা ঘরে বসে লিপ সার্ভিস দেয় তাদের ত্রাণ কার্যক্রম হলো এক ধরনের ত্রাণ বিলাস। বিএনপির মধ্যে কোনো ভদ্রতা নেই। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকেও যে অসভ্য ভাষায় কথা বলে তা কাম্য নয়।

‘বিএনপির ভাষা হলো রাস্তার ভাষা। তারা রাস্তার ভাষায় কথা বলে আর রাজনীতির ভাষায় কথা বলে আওয়ামী লীগ।’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য বেগম মতিয়া চৌধুরী সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন দলের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী। ওই সময় আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল।

আরও পড়ুন:
‘বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে জনগণ রসিকতা করে’
ফখরুলের বিরুদ্ধে সংবিধান লঙ্ঘনের অভিযোগ কাদেরের
চলে গেলেন আওয়ামী লীগ নেতা মুকুল বোস
পদ্মা সেতু নিয়ে দায়িত্বশীল হওয়ার অনুরোধ
বিএনপির নির্যাতন-নিপীড়নের অভিযোগ কল্পিত: কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The party workers got the support of the Prime Minister in the first step

দলদলির শ্রমিকরা প্রথম ধাপেই পেলেন প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা

দলদলির শ্রমিকরা প্রথম ধাপেই পেলেন প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান মঙ্গলবার দুপুরে ক্ষতিগ্রস্ত চা শ্রমিক পরিবারের মধ্যে সহায়তার টাকা বিতরণ করেন। ছবি: নিউজবাংলা
সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে সিলেটে ৫ কোটি টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে। এ টাকা থেকেই প্রথম ধাপে ক্ষতিগ্রস্ত ৫ হাজার পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে দলদলি চা বাগানের ৯ পরিবারকে সহায়তা দেয়া হলো।

ঢলে ভেঙে যাওয়া ঘর মেরামতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলের বরাদ্দে অর্থ প্রথম ধাপেই পেয়েছে সিলেটের দলদলি চা বাগানের ৯ পরিবার।

মঙ্গলবার দুপুরে সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান ক্ষতিগ্রস্ত চা শ্রমিক পরিবারের মাঝে ১০ হাজার টাকা করে বিতরণ করেন।

১৮ জুন ঢলে ঘর ভেঙে যায় দলদলি চা বাগানের ২০টি শ্রমিক পরিবারের। তবে অর্থাভাবে এতদিন ঘরগুলোও সংস্কার করতে পারেননি শ্রমিকরা।

এই বাগানের শ্রমিকদের দুর্দশা নিয়ে নিউজবাংলায় প্রতিবেদন প্রকাশের পর বদলে যায় চিত্র।

সরকারি সহায়তারও আগে ক্ষতিগ্রস্ত ২০ পরিবারকে ‘দুর্যোগপীড়িতদের পাশে লেখক-শিল্পী- সাংবাদিক-প্রকাশক’-এর ব্যানারে ঘর তৈরির টিন দেয়া হয়। তাদেরকে খাবার দিয়েছে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন।

মঙ্গলবার অর্থ বিতরণের সময় জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি মেরামতের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে সিলেটে ৫ কোটি টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে। এ টাকা থেকেই প্রথম ধাপে ক্ষতিগ্রস্ত ৫ হাজার পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে দলদলি চা বাগানের ৯ পরিবারকে সহায়তা দেয়া হলো।

তিনি বলেন, চা শ্রমিকরা এমনিতেই মানবেতর জীবন যাপন করেন। তাই প্রথম ধাপে তাদের সহায়তা দেয়া হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে ক্ষতিগ্রস্ত সবাইকে পুনর্বাসন করা হবে।

১৮ জুন পাহাড়ি ঢল ও টিলা ধসে পরিবারগুলোর ঘর ধ্বংস হয়ে যায়।

আশ্রয়কেন্দ্রে এখনও ২৫ হাজারের বেশি মানুষ

১৫ জুন থেকে সিলেটে বন্যা শুরু হয়। মঙ্গলবার ২০ দিন পার হয়েছে। এখনও অনেক জায়গা থেকে নামেনি পানি। এ কারণে আশ্রয়কেন্দ্র ছাড়তে পারেনি অনেক মানুষ।

সিলেটের জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সিলেটে এখনও বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে ২৫ হাজার ৫৭৯ জন আশ্রিত আছেন। জেলায় ৩১৭টি আশ্রয় কেন্দ্র চালু রয়েছে।

জেলা প্রশাসক জানান, এবারের বন্যায় জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ৪ লাখ ৮৪ হাজার ৩৮৩টি, ক্ষতিগ্রস্ত লোকসংখ্যা প্রায় ৩০ লাখ। বানের পানিতে ক্ষতি হয়েছে ৪০ হাজার ঘরবাড়ির।

এ পর্যন্ত জেলায় ১ হাজার ৬১২ টন চাল, ২০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার এবং প্রায় আড়াই কোটি টাকা বন্যার্তদের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে বলে জানান জেলা প্রশাসক।

আরও পড়ুন:
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিদুর্গতদের সহায়তা 
৮৫০ কোটি টাকা বাজেটসহায়তা দেবে দক্ষিণ কোরিয়া
৩৩ কোটি ইউরো সহায়তা দেবে ফ্রান্স
প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়নে জাপানের ৩৯ কোটি টাকা অনুদান
করোনা: আরও আড়াই কোটি ডলার দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

মন্তব্য

বাংলাদেশ
People joked when they heard the name of the movement on the face of BNP

‘বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে জনগণ রসিকতা করে’

‘বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে জনগণ রসিকতা করে’ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ। ছবি: সংগৃহীত
‘আওয়ামী লীগ হচ্ছে এ দেশের গণমানুষের দল। দেশের যেকোনো দুর্যোগে মানুষের পাশে আছে আওয়ামী লীগ। সুখে-দুঃখে, আপদে-বিপদে যেকোনো দুর্যোগে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে।’

বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনলে জনগণ রসিকতা করে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ।

বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় রাজনৈতিক কার্যালয়ে মঙ্গলবার বন্যাকবলিত ১০ জেলার মানুষকে শেখ হাসিনার পক্ষে ঈদুল আজহা উপলক্ষে অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও উপকমিটি।

হানিফ বলেন, ‘আওয়ামী লীগ হচ্ছে এ দেশের গণমানুষের দল। দেশের যেকোনো দুর্যোগে মানুষের পাশে আছে আওয়ামী লীগ। সুখে-দুঃখে, আপদে-বিপদে যেকোনো দুর্যোগে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ জনগণের পাশে আছে, ভবিষ্যতেও থাকবে।’

১৯৭০ সালের ভয়াবহ বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসের কথা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘১৯৭০ সালের ভয়াবহ বন্যা ও জলোচ্ছ্বাসে দেশের যখন ব্যাপক ক্ষতি হয়েছিল, তখন পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী বাংলাদেশের মানুষের পাশে এসে দাঁড়ায়নি। দাঁড়িয়ে ছিল বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।

‘এরপরে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেকোনো দুর্যোগ, বিপাকে দেশের মানুষের পাশে আছে আওয়ামী লীগ। সরকারের নির্দেশনার সঙ্গে সঙ্গে সিলেটসহ ১০ জেলায় বন্যার্তদের পাশে দাঁড়িয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা।’

বিএনপির মিথ্যাচারের কথা উল্লেখ করে মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘সিলেট, সুনামগঞ্জসহ অন্যান্য অঞ্চলে বন্যা দেখার দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন, তারপরেও মিথ্যাচার করছে বিএনপি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সেনাবাহিনী বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।

‘বন্যাকবলিত মানুষের মধ্যে আওয়ামী লীগ ও সরকারের পক্ষ থেকে ব্যাপক ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। দেশের মানুষ বলছে সরকার দূরদর্শিতার পরিচয় দিয়েছে বন্যাকবলিত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে। দেশের মানুষ বলছে সিলেটবাসীর মধ্যে যে পরিমাণ ত্রাণ দেয়া হয়েছে, তা নজিরবিহীন। এত ত্রাণ কখনও দেয়া হয়নি। তারপরও বিএনপির নেতারা বাসায় ও প্রেস ক্লাবে বসে নিয়মিত সরকারের নামে মিথ্যাচার, বিষোদগার করে যাচ্ছেন।’

বিএনপির নেতিবাচক কর্মকাণ্ড দেশের জনগণ ভুলেনি উল্লেখ করে মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি এখন আর জনগণের জন্য নয়। তাদের রাজনীতি হুমকি-ধমকি, মাস্তানির কথাবার্তা। প্রতিদিন তাদের কার্যালয়ে, বাসায়, প্রেস ক্লাবে সরকারের সমালোচনা করাই হচ্ছে বিএনপির কাজ।

‘১৩ বছর ধরে তারা বলছে ঈদের পরে আন্দোলন করে সরকারের পতন ঘটাবে, কিন্তু এবার বলছে বন্যার পরে সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলে পতন ঘটানো হবে। বিএনপির আন্দোলনের কথা শুনে জনগণ এখন রসিকতা করে।’

সভাপতির বক্তব্যে বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘দেশের মানুষকে বাঁচাতে বন্যার্তদের সাহায্য করতে আওয়ামী লীগ ট্রেনিংপ্রাপ্ত। অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে বলা লাগে না।’

অর্থ বিতরণ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল, কার্যনির্বাহী সদস্য রেমন্ড।

আরও পড়ুন:
আওয়ামী লীগের ৭৩
আওয়ামী লীগ নেতাকে দুর্বৃত্তের গুলি
বিএনপির নেতারা কথা বলে বেশি, কাজ করে কম: নানক
৫০ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকব: শেখ সেলিম
বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ান: বিত্তবানদের প্রতি হানিফ সংকেত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Adolescent pornography viral threat 7 years in prison

কিশোরীর অশ্লীল ছবি ভাইরালের হুমকি, ৮ বছর জেল-জরিমানা

কিশোরীর অশ্লীল  ছবি ভাইরালের হুমকি, ৮ বছর জেল-জরিমানা
রায়ে আদালত উল্লেখ করেন, সাজা একটার পর একটা কার্যকর হবে। জরিমানার অর্থ ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে ওই কিশোরী পাবে। মামলার আসামি পলাতক আছেন। তার অনুপস্থিতিতেই রায় দেয়া হয়েছে।

এক কিশোরীর এডিট করা অশ্লীল ছবি ইন্টারনেটে ভাইরাল করে দেয়ার হুমকি দিয়ে টাকা দাবি করার মামলায় রাজশাহীর আদালত এক ব্যক্তিকে আট বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও আট লাখ টাকা জরিমানা করেছে।

রাজশাহীর সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. জিয়াউর রহমান আলাদা দুটি ধারায় মঙ্গলবার দুপুরে আসামিকে এ দণ্ড দেন।

দণ্ডিত শাকিল মন্ডল চট্টগ্রামের হাটহাজারী থানার ১ নম্বর দক্ষিণ পাহাড়তলী এলাকার বাসিন্দা। ২০১৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি তার বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়। ১৬ বছর বয়সী কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন রাজশাহী সাইবার ট্রাইব্যুনালের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ইসমত আরা।

এজাহারে বলা হয়, আসামি শাকিল মন্ডল ওই কিশোরীর ছবি সংগ্রহ করে এডিট করেন। পরে অশ্লীল ছবি শাকিল তার ফেইক ফেসবুক আইডি থেকে ওই কিশোরীর ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে পাঠান। কিশোরীর বাবাকে ফোন করে শাকিল ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা না দিলে এসব ছবি নেটে ছেড়ে দেয়া হবে বলে হুমকি দেন।

আইনজীবী ইসমত আরা জানান, মামলার পর পুলিশ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়। এরপর বিচার শুরু হয়। আদালত ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এ মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে আদালত একটি ধারায় আসামিকে ৫ বছর সশ্রম কারাদণ্ড এবং ৫ লাখ টাকা জরিমানা করেন। জরিমানার এ অর্থ অনাদায়ে আরও ছয়মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেয়া হয়।

অন্য আরেকটি ধারায় আসামিকে ৩ বছর সশ্রম কারাদণ্ড এবং ৩ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানার এই অর্থ অনাদায়ে আরও তিন মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে আসামিকে।

রায়ে আদালত উল্লেখ করেন, সাজা একটার পর একটা কার্যকর হবে। জরিমানার অর্থ ক্ষতিগ্রস্ত হিসেবে ওই কিশোরী পাবে। মামলার আসামি পলাতক আছেন। তার অনুপস্থিতিতেই রায় দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কারাগারেই মরতে হবে বাবার হত্যাকারীকে
৫ জেএমবি সদস্যকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা
ইয়াবার মামলায় ২ আসামিকে ৫ বছরের সাজা
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের মামলায় ৮ বছরের কারাদণ্ড  
সাবেক শুল্ক কর্মকর্তার ৮ বছর সাজা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Judgment issued with the introduction of biometric system in prisons

কারাগারে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালুর নির্দেশ দিয়ে রায় প্রকাশ

কারাগারে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালুর নির্দেশ দিয়ে রায় প্রকাশ কারাগারে বায়োমেট্রিক পদ্ধতির প্রচলন করতে নির্দেশনামূলক হাইকোর্টের রায় প্রকাশ করা হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত
২০১৩ সালের ৯ এপ্রিল রাজধানীর খিলগাঁও থানায় হওয়া মামলায় (নম্বর-১২(৪)১৩) পুলিশ নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের শাহজাদপুর গ্রামের আহসান উল্লাহর ছেলে মোদাচ্ছের আনছারীকে গ্রেপ্তার করে। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর মোদাচ্ছের তার নাম-ঠিকানা গোপন করে নিজেকে নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার আজগর আলী মোল্লা বাড়ি মসজিদ রোড এলাকার মোহাম্মদ আব্দুল কাদেরের ছেলে মোহাম্মদ জহির উদ্দিন নামে পরিচয় দেন।

বদলি সাজা খাটা রোধে এবং প্রকৃত আসামি শনাক্তে দেশের কারাগারগুলোতে পর্যায়ক্রমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতির প্রচলন করতে নির্দেশনামূলক হাইকোর্টের রায় প্রকাশ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রায় প্রকাশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী শিশির মনির।

ছয় পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায়টি লিখেছে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো.মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

রায়ে বিদ্যমান ব্যবস্থার সঙ্গে সব থানায় আসামির হাতের আঙ্গুল ও তালুর ছাপ, চোখের মণি, বায়োমেট্রিক পদ্ধতির প্রচলন করা, গ্রেপ্তারের পর আসামির সম্পূর্ণ মুখের ছবি ধারণ ও কেন্দ্রীয় তথ্যভাণ্ডারে সংরক্ষণ করা, এবং দেশের সব কারাগারে আঙ্গুল ও হাতের তালুর ছাপ, চোখের মণির সংরক্ষণের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক তথ্য সংরক্ষণ সিস্টেম চালু করতে বলা হয়েছে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও কারা কর্তৃপক্ষকে এ নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়েছে।

আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।

২০১৩ সালের ৯ এপ্রিল রাজধানীর খিলগাঁও থানায় হওয়া মামলায় (নম্বর-১২(৪)১৩) পুলিশ নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের শাহজাদপুর গ্রামের আহসান উল্লাহর ছেলে মোদাচ্ছের আনছারীকে গ্রেপ্তার করে।

পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার পর মোদাচ্ছের তার নাম-ঠিকানা গোপন করে নিজেকে নোয়াখালীর বসুরহাট পৌরসভার আজগর আলী মোল্লা বাড়ি মসজিদ রোড এলাকার মোহাম্মদ আব্দুল কাদেরের ছেলে মোহাম্মদ জহির উদ্দিন নামে পরিচয় দেন।

এরপর ওই বছরের ৩১ অক্টোবর মোদাচ্ছের জামিন পেয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে পালিয়ে যান। তিনি জহির উদ্দিন নামেই আদালতে জামিনের আবেদন করেন।

তদন্ত শেষে পুলিশ জহির উদ্দিনসহ অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে ২০১৪ সালের ৮ এপ্রিল অভিযোগপত্র দেয়। এরপর ঢাকার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ২০১৭ সালের ১১ অক্টোবর জহিরের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে। জহির উদ্দিন সেই পরোয়ানার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেন।

ওই রিটের শুনানি নিয়ে গত বছরের ১০ মার্চ জহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে জারি করা গ্রেপ্তারি পরোয়ানার কার্যকারিতা স্থগিত করে হাইকোর্ট। একই সঙ্গে রুল জারি করা হয়।

পাশাপাশি নোয়াখালীর জহির উদ্দিন ওই মামলার প্রকৃত আসামি কি-না, তা তদন্ত করতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) নির্দেশ দেয়া হয়।

আদালতের নির্দেশে গত সপ্তাহে হাইকোর্টে প্রতিবেদন দেয় পিবিআই। প্রতিবেদনে বলা হয়, মামলার প্রকৃত আসামি নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের আহসান উল্লাহর ছেলে মোদাচ্ছের আনছারী ওরফে মোহাদ্দেস।

পিবিআইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সারোয়ার আলমের দাখিল করা প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘জহির উদ্দিনকে খিলগাঁও থানার মামলায় (নম্বর-১২(৪)১৩) গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আসামি হিসেবে চিহ্নিত করার মতো পর্যাপ্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া যায়নি। জহির উদ্দিন প্রকৃতপক্ষে গ্রেপ্তারি পরোয়ানাধারী ব্যক্তি নয়। প্রকৃত আসামি মোদাচ্ছের আনছারী ওরফে মোহাদ্দেস।

আরও পড়ুন:
কারাগারে বায়োমেট্রিক পদ্ধতির অগ্রগতি জানতে চায় হাইকোর্ট
আসামি শনাক্তে কারাগারে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি চালুর নির্দেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
PK Haldar again in jail custody

পি কে হালদার ফের জেল হেফাজতে

পি কে হালদার ফের জেল হেফাজতে
তৃতীয় দফার ১৪ দিনের জেল হেফাজত শেষে মঙ্গলবার পিকে হালদারসহ ৬ অভিযুক্তকে আদালতে তোলা হলে কলকাতার ব্যাঙ্কশাল কোর্টের বিশেষ সিবিআই আদালত আরও ১৫ দিন জেলহাজতে রাখা নির্দেশ দেয়। ২০ জুলাই তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের আইনজীবী।

বাংলাদেশ থেকে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালানো প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদার এবং তার ৫ সহযোগীর জেল হেফাজতের মেয়াদ আরও ১৫ দিন বাড়ানো হয়েছে।

তৃতীয় দফার ১৪ দিনের জেল হেফাজত শেষে মঙ্গলবার পিকে হালদারসহ ৬ অভিযুক্তকে আদালতে তোলা হলে কলকাতার ব্যাঙ্কশাল কোর্টের বিশেষ সিবিআই আদালত এই নির্দেশ দেয়।

পরবর্তী শুনানির জন্য তাদেরকে ২০ জুলাই আদালতে হাজির করতে বলা হয়েছে। ওইদিন অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ইডির আইনজীবী অরিজিৎ চক্রবর্তী।

বাংলাদেশের এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের হাজার হাজার কোটি টাকা আর্থিক কেলেঙ্কারি মামলার প্রধান আসামি পি কে হালদার।

পি কে হালদার চক্র জালিয়াতির টাকা হাওলার মাধ্যমে ভারত এবং অন্যান্য দেশে পাচার করে দিয়েছে।

বাংলাদেশ সরকারের অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট বা ইডি পশ্চিমবঙ্গের অশোকনগর থেকে পি কে হালদারসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করে নিজেদের হেফাজতে নেয় ।

প্রথমে ৩ দিন, পরে আদালতের নির্দেশে আরও ১০ দিনের জন্য অভিযুক্তদের নিজেদের হেফাজতে নেয় ইডি। এরপর প্রথম পর্যায়ে ১১ দিন এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত। সেই জেল হেফাজতের মেয়াদ শেষে ২১ জুন অভিযুক্তদের আদালতে তোলা হলে আবারও ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দেয় আদালত।

ইডির তদন্তকারীরা অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করে বহু জমি-বাড়ি ফ্ল্যাটের সন্ধান পেয়েছেন। বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে বহু গুরুত্বপূর্ণ নথি, নগদ টাকা, মোবাইল ফোন, অবৈধ পাসপোর্ট, আধার কার্ড ও ভোটার কার্ড। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে অর্থ পাচারের মামলা করেছে ভারতের এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট।

আরও পড়ুন:
পি কে হালদার ফের ১৪ দিনের জেল হেফাজতে
পাচারের টাকা বৈধ করার সুযোগ পাবেন না পি কে
পি কে হালদার ফের ১৪ দিনের জেল হেফাজতে
এবার ১১ দিনের জেল হেফাজতে পি কে হালদার
পি কে হালদারকে ফেরাতে যোগাযোগ করা হচ্ছে: আইজিপি

মন্তব্য

p
উপরে