× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Come visit the village to see the improvement Prime Minister of the critics
hear-news
player
print-icon

উন্নতি দেখতে গ্রাম ঘুরে আসুন, সমালোচকদের প্রধানমন্ত্রী

উন্নতি-দেখতে-গ্রাম-ঘুরে-আসুন-সমালোচকদের-প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সোমবার সকালে এসডিজি অগ্রগতি পর্যালোচনাবিষয়ক দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: পিএমও
সমালোচনাকারীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকায় বসে অনেকে সমালোচনা করেন। তাদের কাছে আমার অনুরোধ থাকবে, সারা বাংলাদেশেটা আপনারা একটু ঘুরে দেখুন, পরিবর্তনটা কোথায় এসেছে, কতটা এসেছে। গ্রাম পর্যায়ে একটু যোগাযোগ করলে সেটা জানতে পারবেন।’

সরকারের সমালোচনা করার আগে দেশের অগ্রগতি ও প্রান্তিক মানুষের বদলে যাওয়া জীবনযাত্রা দেখে আসতে সমালোচকদের পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে সোমবার সকালে টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অগ্রগতি পর্যালোচনাবিষয়ক দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী এ পরামর্শ দেন।

বক্তব্যে করোনাভাইরাস মহামারির অভিঘাত এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানে তৈরি মন্দা ও খাদ্যসংকট মোকাবিলায় ব্যক্তিজীবন থেকে সরকারের কর্মসূচি—সবখানে অপচয় বন্ধের আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

আবাদযোগ্য এক ইঞ্চি জমিও যাতে খালি না থাকে, সেটা নিশ্চিত করারও তাগিদ দিয়েছেন সরকারপ্রধান।

গণভবন প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যুক্ত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘ঢাকায় বসে অনেকে সমালোচনা করেন। তাদের কাছে আমার অনুরোধ থাকবে, সারা বাংলাদেশেটা আপনারা একটু ঘুরে দেখুন, পরিবর্তনটা কোথায় এসেছে, কতটা এসেছে। গ্রাম পর্যায়ে একটু যোগাযোগ করলে সেটা জানতে পারবেন।’

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের অধীনে দেশে সংবাদমাধ্যমের বিকাশ হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এখন সবাই কথা বলতে পারেন। টকশো করতে পারেন।

‘অবশ্য আমি জানি, অনেক কথা বলার পরে বলবেন, আমাদের কথা বলতে দেয়া হয় না, কিন্তু যখন টকশোতে কথা বলেন, কেউ আপনার মুখ চেপে ধরে না বা গলা টিপে ধরেনি।’

সবাই যার যার ইচ্ছামতো কথা বলতে পারছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘সবাইকে আমি বলব, আগে বাংলাদেশটা একটু ঘুরে আসেন। গ্রাম পর্যায়ে যান, সেখানে মানুষ কোন অবস্থায় আছে, সেটা দেখে এসে তার পরে কথা বললে, আপনারা হয়তো জানতে পারবেন।’

বিদ্যুৎ ও মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের ব্যয় নিয়ে সমালোচনাকারীদের জবাব দিয়েছেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘এখন হয়তো অনেকে সমালোচনা করে, এটা করা হচ্ছে কেন বা পরমাণু বিদ্যুৎ কেন করা হলো। এত টাকা খরচ হয়েছে।

‘খরচের দিকটা শুধু অনেকে দেখেন, কিন্তু এই খরচের মধ্য দিয়ে দেশের জনগণ যে কত লাভবান হবে, আমাদের অর্থনীতিতে কতটা অবদান রাখবে, আমাদের উন্নয়ন গতিশীল হবে, মানুষের জীবন পরিবর্তন হবে, সেটা বোধ হয় তারা বিবেচনা করেন না। এটা হচ্ছে খুব দুঃখজনক।’

মন্দা মোকাবিলায় কমাতে হবে অপচয়

করোনাভাইরাস মহামারি এবং ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানে গোটা বিশ্বজুড়ে মন্দা ও খাদ্যের অভাব দেখা দিতে পারে বলে সতর্ক করেছেন প্রধানমন্ত্রী। আর সে জন্য সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সারা বিশ্বব্যাপী একটা অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দিচ্ছে। এমনকি খাদ্যের অভাবও দেখা দিচ্ছে। সেই ক্ষেত্রে আমাদের দেশে যেহেতু আমাদের জমি আছে, মানুষ আছে, আমি ইতিমধ্যেই নির্দেশ দিয়েছি, আমাদের এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি থাকবে না।’

দেশের মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রত্যেকে, যার যতটুকু সামর্থ্য আছে, নিজের খাদ্য উৎপাদন করা, নিজের খাদ্য সাশ্রয় করা এবং নিজের খাদ্যকে ব্যবহার করা বা আমাদের যা আছে সবগুলো ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সবাইকে একটু সাশ্রয়ী হতে হবে।

‘আমাদের পানি ব্যবহারে, আমাদের বিদ্যুৎ ব্যবহারে, আমাদের খাদ্যশস্য ব্যবহারে, প্রতিটি ক্ষেত্রে সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। কারণ আমরা জানি কোভিড-১৯ এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ফলে সারা বিশ্বব্যাপী যে অর্থনৈতিক মন্দা দেখা দিয়েছে বা এর একটা ধাক্কা যেসব ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে, যার ফলে মানুষের অনেক কষ্ট হবে।

‘কাজেই সেটা যেন আমাদের দেশে না হয়, সে জন্য আমাদের দেশের মানুষকে, প্রতিটি মানুষ, প্রতিটি পরিবার, সবাইকে এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে।’

টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট নির্ধারণ

এসডিজি পর্যালোচনা করে লক্ষ্য নির্ধারণের তাগিদ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, সবাই মিলে কাজ করলে ২০৩০ সালের আগে লক্ষ্য অর্জন সম্ভব।

লক্ষ্যপূরণে সরকারের অর্থ সহায়তা অব্যাহত রাখার আশ্বাস দিলেও অপচয় ঠেকাতে হবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘এসডিজি বাস্তবায়নে আমরা নীতি সহায়তা এবং অর্থের জোগান অব্যাহত রাখব, তবে অর্থের সর্বোত্তম ব্যবহার এবং অপচয় রোধ নিশ্চিত করতে হবে।’

আন্তর্জাতিক প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে কার্যকর উদ্যোগের তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, ‘আমি বিশ্বাস করি, আমরা সবাই মিলে একসঙ্গে কাজ করলে ২০৩০-এর আগেই আমরা নির্ধারিত লক্ষ্য অর্জন করতে সক্ষম হব।’

বর্তমান বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনায় এসডিজি পর্যালোচনা প্রয়োজন বলেও মনে করেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘কোন কোন ক্ষেত্রে আমরা সবথেকে বেশি গুরুত্ব দেব, সেগুলো নির্দিষ্ট করা দরকার। যেগুলো আমরা ইতিমধ্যে অর্জন করেছি, সেগুলো ধরে রাখা এবং আগামীতে আমরা কী কী অর্জন করব, কারণ এখনকার প্রেক্ষিত যথেষ্ট পরিবর্তন হয়ে গেছে।’

এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘সেখানে ক্ষেত্রগুলো সুনির্দিষ্টভাবে আমাদের নিতে হবে। কোনো রকম অপচয় যেন না হয়। অপচয় পরিহার করে সুষ্ঠু অর্জন যেন আমরা করতে পারি বা বাস্তবায়ন করতে পারি, সেদিকে আমাদের দৃষ্টি দিতে হবে।

‘সে ক্ষেত্রে যে সমস্ত পদক্ষেপগুলো আমাদের আশু করণীয় বা এই মুহূর্তে করতে হবে, সেগুলো যেমন চিহ্নিত করতে হবে, আবার যেগুলো হয়তো এখনই প্রয়োজন নেই, একটু দীর্ঘমেয়াদি, সেগুলো আমাদের বেছে নিতে হবে। সেভাবে যদি আমরা পরিকল্পিতভাবে এগোতে পারি, তাহলে আমি মনে করি আমরা অভীষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারব।’

দেশের উন্নয়নে সরকারের পাশাপাশি উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা, এনজিও এবং সমাজের বিভিন্ন স্তরে প্রতিনিধিত্বকারী ব্যক্তিরাও সমানভাবে অংশীদার বলে মনে করেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘এ সম্মেলনে সবার অংশগ্রহণ বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ অগ্রযাত্রাকে আরও বেগবান করবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রাখতে বেসরকারি খাত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। বেসরকারি খাতের বিকাশে তার সরকারের নেয়া পরিকল্পনার কথা তুলে ধরেন সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, সরকারের পাশাপাশি দেশের উন্নয়নের বেসরকারি খাতেরও দায়িত্ব রয়েছে।

এসডিজি বাস্তবায়ন

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এসডিজি একটি বৈশ্বিক উন্নয়ন ধারণা হলেও বাংলাদেশের উন্নয়নের পথ পরিক্রমার সঙ্গে এটি ওতপ্রোতভাবে জড়িত আছে। এসডিজি প্রণয়নের প্রক্রিয়ার শুরু থেকেই বাংলাদেশ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল।

‘আমাদের দেশের সংশ্লিষ্ট সব অংশীজনের মতামত নিয়ে ২০১৩ সালে আমরা জাতিসংঘের কাছে মোট ১১টি অভীষ্টের প্রস্তাব করেছিলাম। এর মধ্যে ১০টি অভীষ্টই জাতিসংঘ হুবহু অনুসরণ করে।’

২০১৬ থেকে ২০৩০ সালের মধ্যে এসডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশের যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে বলেও জানান সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘আমরা আমাদের সব মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা দলিল এসডিজি লক্ষ্যমাত্রাকে বিবেচনায় নিয়ে প্রণয়ন করেছি। সর্বশেষ গৃহীত অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় এসডিজি লক্ষ্যমাত্রাকে পরিপূর্ণভাবে বিবেচনায় নেয়া হয়েছে। বাস্তবায়নে কাজও আমরা শুরু করেছি।’

দেশের সব মানুষের মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করাসহ সার্বিক উন্নয়নে সরকারের নেয়া উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দারিদ্র্য বিমোচন বা অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড, এটা শুধু আমরা শহরভিত্তিক বা রাজধানীভিত্তিক করিনি। আমাদের লক্ষ্য একেবারে তৃণমূল পর্যায়ে অর্থাৎ গ্রামভিত্তিক, সাধারণ গ্রামের একেবারে প্রত্যন্ত অঞ্চলের পড়ে থাকা একটা মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নতি যাতে হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখে, আমরা আমাদের সব পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি।

‘বাংলাদেশের সব মানুষ বা পরিবারগুলোকে সম্পৃক্ত করেই আমাদের উন্নয়ন পরিকল্পনা এবং বাস্তবায়ন। আমরা আমাদের ক্ষেত্রকে প্রসারিত করেছি একেবারে গ্রামভিত্তিক। অর্থাৎ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড গ্রামভিত্তিক হবে এটাই আমাদের লক্ষ্য।’

সরকারের নেয়া পল্লীসঞ্চয় ব্যাংক, আশ্রয়ণ প্রকল্প, ডিজিটাল বাংলাদেশ, শিক্ষা সহায়তা কর্মসূচি, নারীর ক্ষমতায়ন, সবার জন্য বিদ্যুৎ, কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশুর মানসিক বিকাশ, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, পরিবেশ সুরক্ষা ও বিনিয়োগ বিকাশের উদ্যোগ দেশের সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘পরিবেশ যেন সুরক্ষিত থাকে, সেদিকে আমি লক্ষ রাখি। এ কারণে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল করে দিয়েছি, যেন যত্রতত্র ইন্ডাস্ট্রি করে আমাদের পরিবেশ দূষণ করতে না পারে। বিনিয়োগ আকর্ষণ করাও আমাদের লক্ষ্য। চাষ উপযোগী ভূমি রক্ষা করাও আমাদের লক্ষ্য।’

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের চেয়ার হিসেবে বাংলাদেশ মুজিব ক্লাইমেট প্রসপারিটি প্ল্যানের খসড়া প্রণয়ন করেছে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘যার রূপকল্প হলো জ্বালানি খাতে স্বনির্ভরতা অর্জন এবং বাংলাদেশের পরিকল্পিত অগ্রযাত্রাকে সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাওয়া।’

২০২২ সালের এপ্রিলের মধ্যে সারা দেশে ১ লাখ ৮৩ হাজার তিনটি গৃহহীন পরিবারকে বাড়ি তৈরি করে দেয়া হয়েছে বলেও জানান বঙ্গবন্ধুকন্যা। তিনি বলেন, ‘কক্সবাজারে ৬৪০ জলবায়ু উদ্বাস্তু পরিবারকে নতুন বাড়ি করে দিয়েছি। ৪ হাজার ৪০৯টি জলবায়ু উদ্বাস্তু পরিবারকে আমরা ঘরে করে দেব।’

এসডিজি বাস্তবায়নে বাংলাদেশের উদ্যোগ ও কার্যক্রম বিশ্ব দরবারেও সমাদৃত হয়েছে জানিয়ে টানা তিন মেয়াদের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতিসংঘের সব সদস্য দেশের মধ্যে বাংলাদেশ প্রথম ৫ বছরে এসডিজি অর্জনে সবচেয়ে বেশি অগ্রগতি করেছে।

‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমন্ট সল্যুশনস নেটওয়ার্ক আমাদেরকে এসডিজিস গ্রগ্রেস অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত করেছে।’

আরও পড়ুন:
কেউ কেউ সরকার উৎখাত করতে চায়: প্রধানমন্ত্রী
পরিবারের সদস্যদের কবর জিয়ারতে শেখ হাসিনা-শেখ রেহানা
যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার
ভারতের সঙ্গে যোগাযোগ বৃদ্ধিতে গুরুত্ব প্রধানমন্ত্রীর
সরকারি প্রতিষ্ঠানে লাভ নয়, সেবাটা মুখ্য: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The fourth wave of the corona is also reluctant to mask

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা থেকে বাঁচতে সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। ইতোমধ্যে সরকার একটি নির্দেশনা দিয়েছে, তবে তার বাস্তবায়ন চোখে পড়েনি। নো মাস্ক, নো সার্ভিস নির্দেশনা বাস্তবায়নে সরকাকে উদ্যোগী হতে হবে। একই সঙ্গে জনগণকে সচেতন হতে হবে।’

করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার আগে আগে সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও ভ্রুক্ষেপ নেই সাধারণের। মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু নির্দেশনা দিলেই এই পরিস্থিতির পরিবর্তন আসবে না। এই নীতি বাস্তবায়নে প্রশাসনকে মাঠে থাকতে হবে।

গত ১৬ জুন থেকে প্রতি দিনই পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার টানা ১৪ দিন ৫ শতাংশের বেশি হওয়ায় এরই মধ্যে বাংলাদেশের করোনার চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

যেদিন চতুর্থ ঢেউয়ের বিষয়টি নিশ্চিত হয়, তার আগের দিন মঙ্গলবার সরকারের পক্ষ থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হয়, তাতে ধর্মীয় প্রার্থনার স্থান, শপিং মল, বাজার, হোটেল-রেস্টুরেন্টে সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরতে হবে। মাস্ক না পরলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও ভ্রুক্ষেপ নেই সাধারণের। মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

তবে বুধবার রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের কোনো নমুনা চোখে পড়েনি। নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাউকে মাঠেই পাওয়া যায়নি।

এটাও ঠিক, প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ে করোনা যতটা প্রাণঘাতী ছিল, তৃতীয় ঢেউয়ে ছিল না ততটা। চতুর্থ ঢেউ যেদিন নিশ্চিত হয়, সেদিনসহ পর পর তিন দিন রোগী পাওয়া গেছে দুই হাজারের বেশি। তবে এই রোগীদের মধ্যে জটিলতা কম। হাসপাতালে চাপ কম, রোগীর মৃত্যুও প্রথম তিন ঢেউয়ের তুলনায় অনেক কম।

চতুর্থ ঢেউ নিশ্চিত হওয়ার দিন দুই হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনা শনাক্ত হলেও ২৪ ঘণ্টায় শূন্য মৃত্যুর স্বস্তিদায়ক তথ্যও জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

তবে জনগণের এমন উদাসীনতা চলতে থাকলে করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

রাজধানীর নিউ ইস্কাটনে প্রভাতী উচ্চ বিদ্যানিকেতন ও ইস্পাহানী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঘুরে ছাত্রীদের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি বললেই চলে।

ইস্পাহানীর দশম শ্রেণির ছাত্রী তাহমিনা বিনতে রশিদ বলে, ‘এখন তো করোনা কমে গেছে। আর আমার করোনার টিকাও দেয়া হয়েছে, তাই মাস্ক তেমন একটা পরা হয় না।’

প্রভাতীর সপ্তম শ্রেণির ছাত্র মারুফ হোসাইন বলে, ‘টিকা দেয়ার পর এখন আর করোনাকে ভয় পাই না। তাই সব সময় মাস্ক পরা হয় না।’

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

মাস্ক পরার বিষয়ে জনগণের এমন উদাসীনতা চলতে থাকলে করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ‘বাহন পরিবহনে’ উঠে দেখা যায় অধিকাংশের মুখে মাস্ক নেই। এ বিষয়ে কাউকে চিন্তিতও দেখা গেল না।

মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে একজন যাত্রী মুখ ভেংচিয়ে বলেন, ‘এমনি’।

করোনা বাড়ছে বলার পর তিনি বলেন, ‘মাস্ক পরলে গরম লাগে।’

এটুকু বলেই মুখ উল্টোদিকে ঘুরিয়ে নিলেন।

একটি পরিবহন সার্ভিসের টিকিট কালেক্টর মোহাম্মদ তাওহীদ বলেন, ‘মানুষ বেশির ভাগই তো দেখি মাস্ক পরে না।’

তাওহীদ নিজেও মাস্ক পরেননি। বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বলেন, ‘আমার মাস্ক পরার সময় নাই। আগে কাজ করতে হবে।’

করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা থেকে বাঁচতে সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। ইতোমধ্যে সরকার একটি নির্দেশনা দিয়েছে, তবে তার বাস্তবায়ন চোখে পড়েনি। নো মাস্ক, নো সার্ভিস নির্দেশনা বাস্তবায়নে সরকাকে উদ্যোগী হতে হবে। একই সঙ্গে জনগণকে সচেতন হতে হবে।’

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

করোনার সংক্রমণ রোধে মাস্ক পরার বিষয়ে অনেকেরই এমন উদাসীনতা রয়েছে। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআরের উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোশতাক হোসেনের ধারণা করোনার চতুর্থ ঢেউ এবার বেশিদিন স্থায়ী হবে না।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ওমিক্রনের যে সংক্রমণ আমরা দেখেছি, সেটা দ্রুত সময়ের মধ্যে সংক্রমণ চূড়ায় উঠে আবার দ্রুত নেমে গেছে। করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে ওমিক্রনের যে দুটি সাব-ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে, এটি আরও দ্রুত সংক্রমিত করতে সক্ষম। আমার ধারণা, এই হার জুলাইয়ের মধ্যে নেমে যাবে।’

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর ধীরে ধীরে সংক্রমণ বাড়তে থাকে। প্রথম ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে। একই বছরের মার্চে ডেল্টা ধরনের করোনায় আসে দ্বিতীয় ঢেউ। এ পর্যায়ে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হয় গত জুলাইয়ে। একপর্যায়ে শনাক্তের হার ৩৩ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর দেশে তৃতীয় ঢেউ নিয়ে আসে করোনার আরেক ধরন ওমিক্রন। তৃতীয় ঢেউয়ের সময় ২৮ জানুয়ারি করোনা শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ দাঁড়ায়, যা দেশে করোনা সংক্রমণ ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি। তবে তৃতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত বেশি হলেও মৃত্যু ছিল তুলনামূলক কম। এই ঢেউ দ্রুত নিয়ন্ত্রণেও আসে। গত ১১ মার্চ তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হয়।

তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মাস্ক পরা ছাড়া করোনাসংক্রান্ত সব বিধিনিষেধ তুলে দেয়া হয়। তবে জনগণের মধ্যে মাস্ক পরা নিয়ে অনীহার বিষয়টি আবার দেখা যায়।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Crimes against humanity Shafiuddin of Habiganj was sentenced to death

মানবতাবিরোধী অপরাধ: হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড

মানবতাবিরোধী অপরাধ: হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনের মৃত্যুদণ্ড আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাইনবোর্ড। ফাইল ছবি
প্রসিকিউশন আসামিদের বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যাসহ বিভিন্ন অপরাধে দুটি অভিযোগ আনে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে বৃহস্পতিবার মামলার রায় ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল।

মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল।

এ মামলায় অপর তিন আসামিকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। খালাস পেয়েছেন অন্য একজন।

ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি শাহিনুর ইসলামসহ তিন সদস্যদের ট্রাইব্যুনাল বৃহস্পতিবার এ রায় দেয়।

মামলায় আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে তাজুল ইসলাম, জাহেদ মিয়া ও ছালেক মিয়াকে। খালাস পেয়েছেন সাব্বির আহমেদ।

এর আগে গত ১৭ মে মামলাটির যুক্তিতর্ক শেষ করে রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ রাখা হয়।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সীমন। আসামিপক্ষে ছিলেন আব্দুস সাত্তার পালোয়ান ও গাজী তামিম।

২০১৮ সালের ২১ মার্চ এ মামলায় পাঁচজনের নামে তদন্ত সম্পন্ন করে তদন্ত সংস্থা। পরে তারা প্রসিকিউটশনের কাছে প্রতিবেদন জমা দেয়।

প্রসিকিউশন আসামিদের বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যাসহ বিভিন্ন অপরাধে দুটি অভিযোগ আনে। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে রায়ের জন্য মামলাটি অপেক্ষমাণ রাখে ট্রাইব্যুনাল।

আরও পড়ুন:
মানবতাবিরোধী অপরাধ: সুনামগঞ্জের ১১ জনের বিচার শুরুর নির্দেশ
বিচার শেষে রায়ের অপেক্ষা
জামায়াত নেতার মৃত্যুদণ্ড: সাতক্ষীরায় আনন্দ মিছিল
জামায়াত নেতা খালেকসহ দুজনের মৃত্যুদণ্ড
মানবতাবিরোধী অপরাধ: ফাঁসির রায়ের ৭ বছর পর কায়সারের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Shoe garland around teachers neck Lawyers want judicial inquiry

শিক্ষকের গলায় জুতার মালা: বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান আইনজীবী

শিক্ষকের গলায় জুতার মালা: বিচার বিভাগীয় তদন্ত চান আইনজীবী নড়াইলের মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনায় ক্ষোভ ছড়িয়েছে দেশব্যাপী। অলংকরণ: মামুন হোসাইন/নিউজবাংলা
আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আদালতের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা রিট দায়েরের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছি। আজকেই রিটটি দায়ের করে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে।’

নড়াইলে কলেজশিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবারই রিটটি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী পূর্ণিমা জাহান।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আদালতের পরামর্শ অনুযায়ী আমরা রিট দায়েরের জন্য যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছি। আজকেই রিটটি দায়ের করে শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে।’

এর আগে গত ২৮ জুন এ ঘটনায় প্রয়োজনীয় আদেশ চেয়ে বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন এই আইনজীবী। পরে বিষয়টি নিয়ে রিট করতে পরামর্শ দেয় হাইকোর্ট।

প্রেক্ষাপট

ফেসবুকে ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) বহিষ্কৃত মুখপাত্র নূপুর শর্মার সমর্থনে কলেজের এক হিন্দু শিক্ষার্থীর পোস্ট দেয়াকে কেন্দ্র করে গত ১৮ জুন দিনভর নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড ডিগ্রি কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ, সহিংসতা চলে। গুজব ছড়িয়ে দেয়া হয় ওই শিক্ষার্থীর পক্ষ নিয়েছেন কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস।

এরপর পুলিশের পাহারায় বিকেল ৪টার দিকে স্বপন কুমার বিশ্বাসকে ক্যাম্পাসের বাইরে নিয়ে যাওয়ার সময় তাকে দাঁড় করিয়ে গলায় জুতার মালা পরিয়ে দেয় একদল ব্যক্তি।

শিক্ষক স্বপন কুমার হাত উঁচিয়ে ক্ষমা চাইতে থাকেন। পরে তাকে তুলে নেয়া হয় পুলিশের গাড়িতে।

পুলিশের সামনে এমন ঘটনায় দেশজুড়ে তৈরি হয়েছে তীব্র ক্ষোভ।

শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসকে গলায় জুতার মালা দিয়ে অপদস্থ করার ঘটনায় কারও দায়িত্বে গাফিলতি আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে বুধবার সাংবাদিকদের জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

নিউজবাংলার অনুসন্ধানে দেখা গেছে, স্বপন কুমারকে জুতার মালা পরানোর পর তার আশপাশে পুলিশের জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাসহ বাহিনীর অন্তত ১০ সদস্য উপস্থিত ছিলেন। ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষকে যেখানে দাঁড় করিয়ে জুতার মালা পরানো হয়, তার তিন-চার হাত দূরেই দৃশ্যত নির্বিকার ভঙ্গিতে দাঁড়িয়েছিলেন নড়াইল সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শওকত কবীর।

আরও পড়ুন:
শিক্ষক হত্যা ও অপদস্থের ঘটনায় চবি শিক্ষক সমিতির প্রতিবাদ
শিক্ষকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার
শিক্ষক হত্যাকারীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে ঢাবিতে আমরণ অনশন
শিক্ষক হত্যায় জিতুর বাবা রিমান্ডে
শিক্ষক হত্যা: আলামত জব্দে দেরি, আসামির বয়সও ভুল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bank loan interest limit will go up to 9 percent?
মুদ্রানীতি ঘোষণা আজ

ব্যাংকঋণের সুদের সীমা ৯ শতাংশ উঠে যাবে?

ব্যাংকঋণের সুদের সীমা ৯ শতাংশ উঠে যাবে? বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় আগামী অর্থবছরের জন্য মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদায়ী গভর্নর ফজলে কবির। ফাইল ছবি
২০২০ সালের ১ এপ্রিল থেকে ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার ৯ শতাংশ আর আমানতের সর্বোচ্চ সুদহার ৬ শতাংশ কার্যকর হয়। তবে গত বছরের ৮ আগস্টে এক নির্দেশে আমানতের সুদহার মূল্যস্ফীতির হারের চেয়ে বেশি রাখার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক। মে মাসে তা উঠেছে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশে। ফলে ব্যাংকগুলোকে যদি এর চেয়ে বেশি সুদ পরিশোধ করতে হয়, তাহলে তাদের পক্ষে ঋণের সুদহার ৯ শতাংশ রাখা কঠিন।

মূল্যস্ফীতির পারদ ঊর্ধ্বমুখী। অস্থির মুদ্রাবাজার। ডলার লেনদেন হচ্ছে এক শ টাকার আশপাশে। রয়েছে করোনার ধাক্কা। পাশাপাশি বৈশ্বিক রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। সংকটকালে টিকে থাকতে কর্মসংস্থান আর বিনিয়োগ বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তার মধ্যে নতুন মুদ্রানীতি নিয়ে আসছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের বিদায়ী গভর্নর ফজলে কবির।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় আগামী অর্থবছরের জন্য এই মুদ্রানীতি ঘোষণা করবেন তিনি।

করোনার কারণে গত দুই বছর আনুষ্ঠানিকতা ছাড়া শুধু ওয়েবসাইটে মুদ্রানীতি প্রকাশ করা হয়।

আলোচনা আছে সব ধরনের ঋণে ৯ শতাংশ সুদহারের যে ঊর্ধ্বসীমা রয়েছে তা তুলে দেয়ার ঘোষণা থাকতে পারে নতুন মুদ্রানীতিতে। তবে একেবারে বাজারের ওপর ছেড়ে না দিয়ে নতুন করে একটি সীমা দেয়া হতে পারে।

বাংলাদেশে ব্যাংক ঋণের সুদহার বেশি- এমন আলোচনার মধ্যে ২০২০ সালের ১ এপ্রিল থেকে ঋণের সর্বোচ্চ সুদহার ৯ শতাংশ কার্যকর হয়। সেই সঙ্গে আমানতের সর্বোচ্চ সুদহার ঠিক করা হয় ৬ শতাংশ।

ব্যাংকঋণের সুদের সীমা ৯ শতাংশ উঠে যাবে?

তবে পরে দেখা গেছে, ব্যাংকগুলো আমানতের সুদহার আড়াই শতাংশ পর্যন্ত নামিয়ে আনে। ফলে মূল্যস্ফীতি হিসাব করে দেখা গেছে, ব্যাংকে টাকা রাখলে আসলে তার মূল্যমান এক বছর পরে কমে যায়।

এর মধ্যে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আবার আমানতের সুদহার নিয়ে নতুন এক সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যাতে আমানতের সুদহার এখন ৬ শতাংশের সীমায় রাখা যাচ্ছে না।

গত বছরের ৮ আগস্ট এক নির্দেশে আমানতের সুদহার মূল্যস্ফীতির হারের চেয়ে বেশি রাখার নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

২০২২-২৩ অর্থবছরের জন্য প্রস্তাবিত বাজেটে মূল্যস্ফীতি ৫ দশমিক ৬ শতাংশে সীমিত রাখার লক্ষ্য নির্ধারণ করা হলেও গত মে মাসে তা উঠেছে ৭ দশমিক ৪২ শতাংশ, যা গত ৮ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।

ব্যাংকগুলোকে যদি আমানতের বিপরীতে সুদহার এরচেয়ে বেশি রাখতে হয়, তাহলে ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে রাখা কঠিন।

আবার মূল্যস্ফীতি ক্রমেই বেড়ে চলার পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বাজারে মুদ্রার সরবরাহ কমাতে চাইছে। অন্যদিকে আগামী অর্থবছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ৫০ শতাংশ অর্জনের জন্য পর্যাপ্ত বিনিয়োগের বিষয়টিও মাথায় রাখতে হচ্ছে।

ফলে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও প্রবৃদ্ধি অর্জন দুটি দিক সামনে রেখেই মুদ্রানীতি দেয়া হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিনির্ধারণী রেপোর সুদহার আরও বাড়ানো হতে পারে। সম্প্রতি রেপোর সুদ বেসিস পয়েন্ট ২৫ শতাংশ বাড়িয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে।

চলতি অর্থবছরের মুদ্রনীতিতে বেসরকারি খাতে ঋণ বাড়ানোর লক্ষ্যমাত্রা প্রাক্কলন করা হয় ১৪ দশমিক ৮০ শতাংশ। গত এপ্রিল পর্যন্ত ঋণ বেড়েছে ১২ দশমিক ৪৮ শতাংশ। সাম্প্রতিক সময়ের মধ্যে যা সর্বোচ্চ। আগামী অর্থবছরের জন্যও একই রকম প্রবৃদ্ধির প্রাক্কলন করা হতে পারে।

সরকার বাজেট ঘাটতি মেটাতে ব্যাংক খাত থেকে এক লাখ ৬ হাজার কোটি টাকার বেশি ঋণ নেয়ার যে লক্ষ্যমাত্রা দিয়েছে তা ঠিক সরবরাহের ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে।

কেমন হবে মুদ্রানীতি? জানতে চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, করোনা ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি প্রণয়ন করা হতে পারে। বাড়তে পারে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিনির্ধারণী সুদহার।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রধান অর্থনীতিবিদ হাবিবুর রহমান বলেন, ‘করোনার পর অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে উৎপাদনশীল কর্মকাণ্ডকে যাতে নিরুৎসাহিত না করা হয়, সেদিকে মুদ্রানীতির দৃষ্টি থাকবে। এবারের মুদ্রানীতি হবে সতর্কতামূলক। পুরোপুরি সংকোচন বা সম্প্রসারণমূলক নয়।’

গভর্নরের জন্য বর্তমান প্রেক্ষাপটে মুদ্রানীতিতে বেশ কিছু চ্যালেঞ্জ রয়েছে বলে মনে করেন বিআইবিএমের সাবেক মহাপরিচালক তৌফিক আহমেদ চৌধুরী। তিনি বলেন, ‘একদিকে মূল্যস্ফীতির নিয়ন্ত্রণ, অন্যদিকে বিনিয়োগও বাড়ানো– এ দুই বিষয় ভারসাম্য বজায় রাখাটা মুদ্রানীতির বড় চ্যালেঞ্জ।’

আরও পড়ুন:
মহামারি সামাল দিতে এবারও সম্প্রসারণমূলক মুদ্রানীতি
মুদ্রানীতি প্রণয়নের কাজ শুরু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Fifty fifty with EVM

ইভিএম নিয়ে মতভেদ ‘ফিফটি ফিফটি’

ইভিএম নিয়ে মতভেদ ‘ফিফটি ফিফটি’ ইভিএম ব্যবহার নিয়ে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বিভক্তি একেবারে সমানে সমান। ফাইল ছবি
তিন দফায় ৩৯টি দলের সবগুলোকে আমন্ত্রণ জানিয়ে তাদের মত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এতে আওয়ামী লীগ ও সমমনারা সবাই ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে মত দিয়েছে। বিএনপি ও সমমনারা সংলাপ বর্জন করেছে। কোনো বলয়ে নেই, এমন দলগুলোর অনেকেই ইভিএম ব্যবহার না করতে বলেছে।

আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন বা ইভিএম ব্যবহার নিয়ে নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে বিভক্তি একেবারে সমানে সমান।

নির্বাচন কমিশনের সংলাপে অংশ নেয়া ২৮টি দলের মধ্যে ১৪টি দল ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে মত দিয়েছে, বাকি ১৪টি দল মনে করে এই যন্ত্র ব্যবহার করা উচিত নয়।

অবশ্য এই ২৮টি দলের বাইরে আরও ১১টি দল রয়েছে, যারা দৃশ্যত ভোটে ইভিএম ব্যবহারের বিপক্ষে। কিন্তু তারা নির্বাচন কমিশনের সংলাপে অংশ নেয়নি। তাদের সবার মত এলে পরিস্থিতি ভিন্ন হতে পারত।

দেশে ব্যালটে ভোটের পাশাপাশি ইভিএমের ব্যবহার চলছে বেশ কয়েক বছর ধরেই। আগামী জাতীয় নির্বাচনেও এর ব্যবহার নিয়ে ভাবছে নির্বাচন কমিশন। তবে এ নিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। আর বিষয়টি নিয়ে নিবন্ধিত দলগুলোর মতামত নিয়েছে তারা।

ইভিএম নিয়ে মতভেদ ‘ফিফটি ফিফটি’
আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে রোববার রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে ইভিএম নিয়ে আলোচনা করে নির্বাচন কমিশন। ছবি: নিউজবাংলা

মোট তিন দফায় ৩৯টি দলের সবগুলোকে আমন্ত্রণ জানিয়ে তাদের মত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এতে আওয়ামী লীগ ও সমমনারা সবাই ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে মত দিয়েছে। বিএনপি ও সমমনারা সংলাপ বর্জন করেছে। কোনো বলয়ে নেই, এমন দলগুলোর অনেকেই ইভিএম ব্যবহার না করতে বলেছে।

বিতর্ক কী নিয়ে

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি ও সমমনারা এই যন্ত্রের বিরোধিতা করে আসছে শুরু থেকেই। তাদের দাবি, এই যন্ত্র দূর থেকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

যদিও ইভিএম ব্যবহার হয়েছে, এমন ভোটে এসব অভিযোগের পক্ষে কোনো তথ্য-প্রমাণ হাজির করতে পারেনি বিরোধীরা। বরং ইভিএমে ভোটার নিজে উপস্থিত না হলে ভোট দেয়া সম্ভব নয়। এখানে যে সমস্যাটি দেখা দিয়েছে সেটি হলো আঙুলের ছাপ নিয়ে পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর অন্য কেউ গোপন বুথে গিয়ে বাটন চেপে দিয়েছে।

ইভিএম নিয়ে মতভেদ ‘ফিফটি ফিফটি’
গোপন বুথে ইভিএমে ভোট দেয়া হচ্ছে। ফাইল ছবি

এভাবে গোপন বুথে থেকে অন্যের ভোট যারা দিয়ে দেয়, তাদের একজন নির্বাচন কমিশনার নাম দিয়েছেন ‘গোপন বুথে ডাকাত’। এই ডাকাত ঠেকাতে কেন্দ্রের ভেতর ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরাও বসানো হয়েছে।

তবে কমিশনের এসব উদ্যোগেও ইভিএম নিয়ে অবস্থান পাল্টায়নি এর বিরোধীরা।

নির্বাচন কমিশনের সংলাপ কী নিয়ে

বর্তমান কমিশন ক্ষমতায় আসার পর গত ১৫ জুন প্রথমবার যে ভোটের পরীক্ষা দেয় তাতে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন এবং শতাধিক ইউনিয়নে ব্যবহার করা হয় ইভিএম। এর মধ্যে হাতিয়ার দুটি ইউনিয়ন ছাড়া বাকি সব এলাকায় ভোট হয় শান্তিপূর্ণ। ইভিএম নিয়ে অন্য কোথাও কোনো কারচুপির অভিযোগ ওঠেনি, তবে আঙুলের ছাপ দিয়ে পরিচয় শনাক্তে অনেক ভোটারকে গলদঘর্ম হতে হয়েছে। ভোটগ্রহণে ধীরগতিও দেখা গেছে বিভিন্ন এলাকায়।

নির্বাচন কমিশনের সংলাপে দলগুলোকে আমন্ত্রণ জানানো হয় বিশেষজ্ঞ নিয়ে আসতে। তবে বেশির ভাগ দলই যন্ত্রটি যাচাইয়ে টেকনিক্যাল পার্সন বা প্রযুক্তিবিদ নিয়ে আসেনি।

প্রথম দফায় অংশ নেয়া ১০টি দলের কেউ টেকনিক্যাল পার্সন আনেনি। দ্বিতীয় দফায় উপস্থিত আটটি দলের মধ্যে চারটি রাজনৈতিক দল নিয়ে আসে বিশেষজ্ঞদের। তৃতীয় দফায় ১০টি দলের মধ্যে কেবল জাকের পার্টি টেকনিক্যাল পার্সন নিয়ে উপস্থিত হয়। অর্থাৎ সব মিলিয়ে ২৮টি দলের মধ্যে ৫টি প্রযুক্তিবিদ নিয়ে ইসির ডাকে সাড়া দেয়।

সংলাপ শেষে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল তার সিদ্ধান্ত জানাননি। বলেছেন, সব দলের মতামত তারা লিপিবদ্ধ করেছেন। এরপর তারা নিজেদের সামর্থ্য পর্যালোচনা করবেন। তার পর হবে সিদ্ধান্ত।

সম্প্রতি নির্বাচন কমিশনার ইসি মো. আলমগীর নিউজবাংলাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে ১০০ আসনে ইভিএমে ভোট করার পরিকল্পনা রয়েছে। তাদের হাতে ১ লাখ ৫৪ হাজার যন্ত্র রয়েছে। এসব যন্ত্র দিয়ে ১০০ আসনের বেশি ভোট করা যাবে না।

ইভিএমের পক্ষে যারা

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ৩০০ আসনেই ইভিএম ব্যবহারের পরামর্শ দিয়েছে। তার জোটের শরিক জাসদসহ কয়েকটি দল ইভিএমের পক্ষে বললেও এই মুহূর্তে সিদ্ধান্ত না নিয়ে বিভিন্ন স্থানীয় নির্বাচনে যন্ত্রটি ব্যবহার করে জনমত গঠনের পরামর্শ দিয়েছে।

অন্য যে দলগুলো ইভিএমের পক্ষে বলেছে, তাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের শরিক দলই বেশি। এগুলো হলো: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, তরিকত ফেডারেশন, সাম্যবাদী দল-এমএল, গণতন্ত্রী পার্টি, জাতীয় পার্টি (জেপি), বিকল্প ধারা।

ইভিএম নিয়ে মতভেদ ‘ফিফটি ফিফটি’

এর বাইরে জাকের পার্টি, বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি, বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট (বিএনএফ), গণফ্রন্ট, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশও ইভিএমের পক্ষে বলেছে। এরা আওয়ামী লীগের শরিক না হলেও দলটির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রেখে চলে।

বিএনপির জোট থেকে বের হয়ে আসা ন্যাশনাল পিপলস পার্টি-এনপিপিও ইভিএমের পক্ষে বলেছে।

ইভিএমবিরোধী যারা

যেসব দল ইভিএমের বিরোধিতা করেছে, তাদের মধ্যে কেবল একটি দলের জাতীয় সংসদে প্রতিনিধিত্ব আছে। সেটি হলো জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি।

অন্য দলগুলো হলো মুসলিম লীগ, জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক অন্দোলন (এনডিএম), বাংলাদেশ কংগ্রেস, ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ, ইসলামিক ঐক্যজোট, খেলাফত আন্দোলন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ, খেলাফত মজলিস, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস, ইসলামী ফ্রন্ট, গণফোরাম, বাংলাদেশ ন্যাপ ও বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তিজোট।

যেসব দলের ইসির সভা বর্জন

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি তার জোটের শরিক দলগুলো এই সংলাপে আসেইনি।

দলগুলো হলো এলডিপি, কল্যাণ পার্টি, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ও বাংলাদেশ মুসলিম লীগ-বিএমএল।

২০ দল থেকে বের হয়ে যাওয়া আন্দালিব রহমান পার্থের বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি-বিজেপিও সংলাপে অংশ নেয়নি।

গত নির্বাচনের আগে করা বিএনপির জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির পাশাপাশি ঐক্যফ্রন্ট থেকে বের হয়ে আসা আবদুল কাদের সিদ্দিকীর কৃষক-শ্রমিক-জনতা লীগ কমিশনের সংলাপ বর্জন করে।

বিএনপির সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পর্ক না রাখা চরমোনাইয়ের পিরের ইসলামী আন্দোলন, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি, বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল বাসদও আলোচনায় আসেনি।

ইসির হাতে কত ইভিএম

বর্তমানে ইসির কাছে ১ লাখ ৫৪ হাজার ইভিএম রয়েছে। তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে বুথ থাকতে পারে আড়াই লাখের মতো। সব দলের অংশগ্রহণে এর আগে নবম সংসদ নির্বাচনে কেন্দ্র ছিল ৩৫ হাজার ২৬৩, কক্ষ ১ লাখ ৭৭ হাজার ২৭৭, ভোটার ছিল ৮ কোটি ১০ লাখ ৮৭ হাজার ৩ জন।

দশম সংসদ নির্বাচনে দেশে ভোট হয়েছে অর্ধেকের মতো আসনে। বাকিগুলোতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ভোট হওয়ায় সেখানে কেন্দ্রসংখ্যা ছিল কম।

সব দলের অংশগ্রহণে গত সংসদ নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র ছিল ৪০ হাজার ১৮৩টি। আর বুথ ছিল ২ লাখ ৭ হাজার ৩১২টি, ভোটার ১০ কোটি ৪১ লাখ ৯০ হাজার ৪৮০ জন। এখন ভোটার ১১ কোটি ৩২ লাখ ৮৭ হাজার ১০ জন। বছরে বাড়ে গড়ে ১৫ লাখের মতো। সেই হিসাবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে ভোটার হতে পারে সাড়ে ১১ কোটির বেশি। ফলে ওই নির্বাচনে কেন্দ্র আর বুথের সংখ্যা আরও বাড়াতে হবে।

প্রতিটি বুথে গড়ে ১.৫টি করে ইভিএম থাকে। অর্থাৎ প্রতি ১০টি ইভিএমের বিপরীতে পাঁচটি থাকে ব্যাকআপ হিসেবে। এই হিসেবে কমিশনের কাছে যে দেড় লাখ ইভিএম আছে, সেগুলো আসলে এক লাখ বুথে ব্যবহার করা যাবে। আগামী নির্বাচনে বুথ হতে পারে ২ লাখ ৪০ হাজার। সব বুথে ইভিএম ব্যবহার করতে হলে কমিশনের হাতে থাকতে হতো ৩ লাখ ৬০ হাজার ইভিএম।

আরও পড়ুন:
ইভিএম যাচাইয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ
ব্যালটের চেয়ে ইভিএম ভালো: সিইসি
টেকনিক্যাল পার্সন ছাড়াই ইভিএম পরীক্ষায় ইসিতে ১০ দল
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে ইভিএম চায় না জাপা
ইভিএম যাচাইয়ে ইসির আমন্ত্রণে বিএনপির ‘না’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The joint secretary is 72 officers

যুগ্মসচিব হলেন ৮২ কর্মকর্তা

যুগ্মসচিব হলেন ৮২ কর্মকর্তা
মূলত বিসিএস প্রশাসনের ২১ তম ব্যাচে নিয়োগপ্রাপ্তরাই এ পদন্নতি পেয়েছেন। এদের মধ্যে ৭৮ জন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরে কর্মরত আছেন। ৪ জন বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করছেন।

প্রশাসনের উপ সচিব পদ মর্যাদার ৮২ কর্মকর্তাকে পদন্নতি দিয়ে যুগ্মসচিব পদে উন্নিত করেছে সরকার। এ নিয়ে প্রশাসনে এই পদ মর্যাদার কর্মকর্তার সংখ্যা হলো ৭৩২ জন।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে বুধবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পদন্নতি পাওয়া এ কর্মকর্তাদের আপাতত কোথাও পদায়ন করা হয়নি। তারা বিশেষ ভারপ্রাপ্তে কর্মকর্তা (ওএমডি) হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

মূলত বিসিএস প্রশাসনের ২১ তম ব্যাচে নিয়োগপ্রাপ্তরাই এ পদন্নতি পেয়েছেন। এদের মধ্যে ৭৮ জন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও দপ্তরে কর্মরত আছেন। ৪ জন বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশ দূতাবাসে কাজ করছেন।

পদোন্নতি পাওয়া কর্মকর্তাদের তাদের যোগদানপত্র ই-মেইলে ([email protected]) পাঠাতে বলেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

প্রজ্ঞাপনে বিদেশে থাকা কর্মকর্তাদের ক্ষেত্রে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের ২০১৪ সালের ২৪ মার্চের আদেশ অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তার প্রেষণ পদের বেতনস্কেল উন্নীত করে আদেশ জারি করবে। আদেশ জারির পর পদোন্নতিপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উন্নীত পদে যোগ দিয়ে যোগদানপত্র নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পাঠাবেন।

পদোন্নতি প্রাপ্ত কর্মকর্তা উন্নীত পদে যোগদানের তারিখ থেকে পদোন্নতিপ্রাপ্ত পদের বেতন-ভাতা পাবেন। তবে বৈদেশিক ভাতা এবং এন্টারটেইনমেন্ট অ্যালাউন্সের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট দূতাবাস বা মিশনের নির্ধারিত হার প্রযোজ্য হবে।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বদলি বা অন্য কোনো কারণে পদ শূন্য হওয়ার আগ পর্যন্ত উন্নীত বেতনস্কেল বহাল থাকবে বলেও প্রজ্ঞাপনে উল্লেথ করা হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Prohibition on sale of Grameen SIM in dishonest services

মানহীন সেবায় গ্রামীণের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা

মানহীন সেবায় গ্রামীণের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা
‘গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত অভিযোগ পাচ্ছি। কল করলে কেটে যায়, ইন্টারনেট সেবাও ধীরগতির। এই বিষয়টি নিয়ে কোম্পানিটির সঙ্গে বারবার যোগাযোগ হলেও পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি। আমরা তাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত মিটিং করি, ড্রাইভ টেস্ট হয়। কিন্তু তাদের কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি।’

মানসম্মত সেবা দিতে না পারার কথা জানিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের সিম বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি।

যদিও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটি দাবি করেছে, তাদের সেবা বিশ্বমানের চেয়ে এগিয়ে। নিষেধাজ্ঞাকে অপ্রত্যাশিত উল্লেখ করে পরিস্থিতি মূল্যায়নের কথাও জানিয়েছে তারা।

বুধবার দুপুরে বিষয়টির অনুমোদনের পরে এ বিষয়ে একটি নির্দেশনা গ্রামীণফোনে পাঠায় বিটিআরসি।

সংস্থাটির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় মৈত্র বলেন, ‘গ্রামীণফোন কোয়ালিটি সার্ভিস দিতে পারছে না। তাই পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত অপারেটরটি (গ্রামীণফোন) সিম বিক্রি করতে পারবে না।’

মানসম্মত সেবা দিতে পারছে না বলতে কী বুঝাচ্ছেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রতিনিয়ত অভিযোগ পাচ্ছি। কল করলে কেটে যায়, ইন্টারনেট সেবাও ধীরগতির।’

এই বিষয়টি নিয়ে কোম্পানিটির সঙ্গে বারবার যোগাযোগ হলেও পরিস্থিতির কোনো উন্নতি হয়নি বলেও জানান বিটিআরসি কর্মকর্তা। বলেন, ‘আমরা তাদের সঙ্গে প্রতিনিয়ত মিটিং করি, ড্রাইভ টেস্ট হয়। কিন্তু তাদের কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি।’

মোবাইল ফোন সেবার মান নিয়ে গ্রাহকদের মধ্যে অসন্তোষ স্পষ্ট। কল ড্রপ, ইন্টারনেটের ধীরগতি নিয়ে ব্যাপক অভিযোগ করে আসছেন ভোক্তারা। তবে এ নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটররা কিছু বলছেন না।

বিটিআরসি প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা গেছে, গত মে পর্যন্ত গ্রামীণফোনের গ্রাহক সংখ্যা ৮ কোটি ৪৯ লাখ ৫০ হাজার।

গ্রামীণের বক্তব্য

যোগাযোগ করা হলে মোবাইল ফোন অপারেটরটি নিউজবাংলাকে একটি লিখিত বক্তব্য পাঠায়

তারা বলেছে, ‘দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় টেলিকম ব্র্যান্ড গ্রামীণফোন বিটিআরসি ও আন্তর্জাতিক সংস্থা আইটিইউর সেবার মানদণ্ড অনুসরণ করার পাশাপাশি সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট মানদণ্ড থেকেও এগিয়ে আছে।’

ধারাবাহিকভাবে নেটওয়ার্ক ও সেবার মানোন্নয়নে আমরা বিটিআরসির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে জানিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরটি বলেম ‘নেটওয়ার্ক আধুনিকীকরণে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি।’

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হওয়া নিলামেও গ্রামীণফোন সর্বোচ্চ অনুমোদিত তরঙ্গ অধিগ্রহণ করেছে জানিয়ে সংস্থাটি এও বলেছে, ‘এমতাবস্থায়, অপ্রত্যাশিত এ চিঠি ও নিষেধাজ্ঞা নিয়ে আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ নির্ধারণ আমরা পরিস্থিতি মূল্যায়ন করছি। আমরা মনে করি, আমাদের সম্ভাব্য গ্রাহকদের স্বার্থে নিয়ন্ত্রক সংস্থার সাথে গঠনমূলক আলোচনাই হবে এ সমস্যা সমাধানের সর্বোত্তম উপায়।’

আরও পড়ুন:
সিলেটের গ্রাহকদের ফ্রি মিনিট দিল গ্রামীণফোন
ফিলিপ কটলারের বইয়ে গ্রামীণফোনের কেস স্টাডি
ঝড়ে ভাঙল গ্রামীণফোনের টাওয়ার, ভোগান্তিতে সাড়ে ৩ হাজারের বেশি গ্রাহক
গ্রামীণফোনের ২৫০% লভ্যাংশ অনুমোদন
জিপির ই-সিম সোমবার থেকে

মন্তব্য

p
উপরে