× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

বাংলাদেশ
Some people will oppose any success Joy
hear-news
player
print-icon

যেকোনো সফলতা নিয়ে কিছু মানুষ বিরোধিতা করবেই: জয়

যেকোনো-সফলতা-নিয়ে-কিছু-মানুষ-বিরোধিতা-করবেই-জয় প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। ছবি: ফেসবুক
প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ‘বিশ্বের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রকস্টার ও গানের সম্রাটরা যেমনটি স্বপ্ন দেখেছিলেন, বাংলাদেশের স্বপ্ন সত্যি হলো। ১৯৭১ সালের যুদ্ধবিধ্বস্ত সেই দেশটি এখন টেকসই অগ্রগতি এবং উন্নয়নের একটি প্রতিকৃতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।’ বাংলাদেশ স্থাপত্যের দৃষ্টিনন্দন কর্মযজ্ঞ পদ্মা সেতু থেকে শুরু করে আধুনিক প্রযুক্তির বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট- এক অনুপ্রেরণার ইতিহাস রচনা করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

পদ্মা সেতু কিংবা বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটই হোক, বাংলাদেশের এমন যেকোনো সফলতা নিয়েই কিছু মানুষ ইচ্ছাকৃতভাবে বিরোধিতা করবে। এমন মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

নিজের ফেসবুকে পেজে যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় বুধবার রাতে দেয়া পোস্টে এ মন্তব্য করে তিনি লিখেছেন, “যুদ্ধাপরাধীদের প্রেতাত্মারা যাতে অন্ধকার অধ্যায় ফিরিয়ে আনতে না পারে, সে জন্য আমাদের সতর্ক থাকতে হবে। ধর্ম ব্যবসায়ীদের প্রতি আমাদের জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে।”

গত ৬ মে নিউ ইয়র্কের ম্যাডিসন স্কয়ার গার্ডেনে ‘গোল্ডেন জুবিলি বাংলাদেশ কনসার্টের’ একটি ভিডিও ওই পোস্টে দিয়েছেন সজীব ওয়াজেদ। তার বর্ণনায় মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশের সহায়তায় ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’-এর ভূমিকা তুলে ধরে তিনি এসব কথা লেখেন।

“১৯৭১ সাল, হাজার হাজার মাইল সাগর দূরত্বের একটি দেশ তার লালসবুজ পতাকা রক্ষায় রক্ত ঝরাচ্ছিল। আর বন্ধুর মুখে সেই দেশটির গল্প গভীরভাবে নাড়া দিল বিশ্ব সংগীতের ইতিহাসের অন্যতম জনপ্রিয় একজন শিল্পীকে।

“পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর গুলিতে নিরস্ত্র মানুষ হত্যা, অসংখ্য নারীদের ধর্ষণ আর অনাহারে শিশুদের মৃত্যু তাকে মর্মাহত করল। ঠিক তখনই কিছু কাব্যিক শব্দ একটি অবিস্মরণীয় গানের লিরিক আকারে ফুটে উঠল।”

খ্যাতনামা ব্রিটিশ ব্যান্ডদল বিটলসের ভোকাল ও লিড গিটারিস্ট জর্জ হ্যারিসনের গাওয়া ইংরেজি ওই গানটির বাংলা ভাষান্তর নিজের পোস্টে তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা।

‘চোখ ভরা বিষাদ নিয়ে আমার বন্ধু আমার কাছে এসেছিল, তার দেশ শেষ হয়ে যাবার আগে পাশে দাঁড়ানো দরকার বলে আমাকে জানিয়েছিল।’

মনে যা এসেছিল, শুধু তাই দিয়ে গানটি রচনা করলেন না বিটলস তারকা জর্জ হ্যারিসন। বরং ইতিহাসের সবচেয়ে নৃশংস একটি গণহত্যার শিকার হওয়া বাংলাদেশের জনগণকে সাহায্য করার চিন্তায় মগ্ন তখন।

‘ছুটে গেলেন বব ডিলান এবং এরিক ক্ল্যাপটনের মতো কিংবদন্তিদের কাছে। তারাও বাংলাদেশকে সমর্থন জোগাতে সম্মত হন। আর বাকিটা তো ইতিহাস।

‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশের মাধ্যমে তারা যুদ্ধের শিকার দেশকে সাহায্য করার নজির স্থাপন করেছে। যখনই আমি এটি ইউটিউবে দেখি, এটি আমাকে একটি সোনালি মুহূর্তে ফিরিয়ে নিয়ে যায়'-

“জর্জ হ্যারিসন বাংলাদেশ গানটি গাইছেন, কানে ভাসছে বব ডিলানের ‘হাউ মেনি রোডস অ্যা ম্যান মাস্ট ওয়াক ডাউন (কতটা পথ পেরোলে বলো পথিক হওয়া যায়)’, ঝড়ের মতো তার সেতারে সুর তুলছেন পণ্ডিত রবিশঙ্কর। একই মঞ্চে সকল তারাদের মেলা!”

বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীতে সেই মুহূর্তকে আরেকটি কনসার্টের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদনের কথা তুলে ধরেন জয়।

‘বিশ্বের সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ রকস্টার ও গানের সম্রাটরা যেমনটি স্বপ্ন দেখেছিলেন, বাংলাদেশের স্বপ্ন সত্যি হল। ১৯৭১ সালের যুদ্ধবিধ্বস্ত সেই দেশটি এখন টেকসই অগ্রগতি এবং উন্নয়নের একটি প্রতিকৃতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।’

বাংলাদেশ স্থাপত্যের দৃষ্টিনন্দন কর্মযজ্ঞ পদ্মা সেতু থেকে শুরু করে আধুনিক প্রযুক্তির বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট- এক অনুপ্রেরণার ইতিহাস রচনা করেছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

সুবর্ণজয়ন্তীতে সবাইকে সোনার বাংলার প্রতিশ্রুতিতে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আসুন, হ্যারিসনের বাংলাদেশ গানটি আরও একবার গাই এবং বিশ্ব আবার শুনুক। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়াই হলো এবারের সুবর্ণজয়ন্তীতে আমাদের প্রতিশ্রুতি।’

আরও পড়ুন:
অ্যাসোসিও লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড পেলেন সজীব ওয়াজেদ জয়
চতুর্থ শিল্পবিপ্লব আসবে জয়ের হাত ধরে: কাদের
৫১ বছরে বঙ্গবন্ধু দৌহিত্র জয়
বাকস্বাধীনতা নিয়ে পশ্চিমাদের কোনো বিবৃতি চান না জয়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Discussion cycle in Bangabandhus own college in Calcutta

কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর নিজের কলেজে আলোচনা চক্র

কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর নিজের কলেজে আলোচনা চক্র বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত সাবেক ইসলামিয়া কলেজ বা বর্তমান মৌলানা আজাদ কলেজে বঙ্গবন্ধুর একটি আবক্ষ ভাস্কর্য।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিবিজড়িত সাবেক ইসলামিয়া কলেজ বা বর্তমান মৌলানা আজাদ কলেজে আয়োজন করা হয় একটি আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রের। 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কলকাতায় যে কলেজে পড়েছেন, সেই সাবেক ইসলামিয়া কলেজ বা বর্তমান মৌলানা আজাদ কলেজে বিশ্ববরেণ্য এই ছাত্রের জন্ম শতবর্ষের শ্রদ্ধা জানাতে একটি আন্তর্জাতিক আলোচনা চক্রের আয়োজন করা হয়।

শনিবার মৌলানা আজাদ কলেজের সেমিনার হলে অনুষ্ঠিত এই আলোচনা চক্রে আমন্ত্রিত বক্তা হিসেবে অংশ নেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক বাংলা একাডেমির সভাপতি সেলিনা হোসেন। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে অংশ নেন কলকাতার বাংলাদেশ উপ হাইকমিশনের কাউন্সিলর (রাজনৈতিক) সিকদার মোহাম্মদ আশরাফুল রহমান এবং কলেজের অধ্যাপক ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ।

সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর কাছে বাংলা শুধুমাত্র একটা শব্দ ছিল না। তার কাছে বাংলা ছিল একটা দর্শন। তিনি ছিলেন আমার কাছে একজন শিক্ষক। বাংলা সাহিত্যকে অনুবাদ করে বিশ্বের দরবারে পৌঁছে দিতে চেয়েছিলেন তিনি।

‘বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিশ্ববন্দিত এই নেতাকে পাকিস্তানের জেলে আটকে রাখা হয়েছিল। তাকে ফাঁসি দেয়ার প্রস্তুতিতে কবরও খোঁড়া হয়েছিল, পাকিস্তান সরকারের নির্দেশে। তখন বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, মৃত্যুর পর তার দেহ যেন বাংলাদেশের মাটিতে কবর দেওয়া হয়। বাংলাদেশের প্রতি বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার গভীরতা ছিল এতটাই।’

কলকাতায় বঙ্গবন্ধুর নিজের কলেজে আলোচনা চক্র
আলোচনা চক্রে আমন্ত্রিত বক্তা হিসেবে অংশ নেন বাংলাদেশের প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক বাংলা একাডেমির সভাপতি সেলিনা হোসেন

কলকাতার বাংলাদেশ উপহাইকমিশনের কাউন্সিলর মোহাম্মদ আশরাফুল রহমান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের নয়, তিনি ছিলেন দুই বাংলার বন্ধু। তার মানসিক বিকাশে এই কলেজের একটা অবদান রয়েছে।’

কলেজের অধ্যক্ষ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু ছিলেন, এই কলেজের ছাত্র সংসদের সভাপতি। কলেজের হোস্টেলে থাকতেন। একটি জাতিকে তিনি উদ্বুদ্ধ করেছিলেন।’

অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র কিছু অংশ পাঠ করে শোনান কলেজের ছাত্ররা।

কলেজের ছাত্র প্রতিনিধি হিসেবে বঙ্গবন্ধু কীভাবে তাদের দাবি নিয়ে লড়াই করেছিলেন, কীভাবে ১৯৪৬ সালের সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় কলকাতাসহ অন্যান্য এলাকার দাঙ্গাপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে ছিলেন– বক্তারা তা তুলে ধরেন।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধুর আত্মগোপন করা বাড়ির খোঁজ মিলল শ্রীরামপুরে
রাশেদ চৌধুরীর প্রত্যর্পণ ঠেকিয়েছিল বিএনপি: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উচ্চফলনশীল জাতের ‘বঙ্গবন্ধু ১০০ ধান’ চাষে সফলতা
অর্থায়ন জটিলতায় ‘বঙ্গবন্ধু হেলিপোর্ট’
‘কলকাতায় বঙ্গবন্ধু’ তথ্যচিত্র বানাচ্ছেন গৌতম ঘোষ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bedepalli is in the gift house

উপহারের ঘরে হচ্ছে বেদেপল্লি

উপহারের ঘরে হচ্ছে বেদেপল্লি বেদে সম্প্রদায়ের মানুষের জন্য গড়ে উঠছে মুজিববর্ষের উপহারের ঘর। ছবি: নিউজবাংলা
বেদে সম্প্রদায়ের ৫৯ পরিবারের প্রায় ৩০০ লোকের বাসস্থানের ঘরের পাশাপাশি সেখানে নির্মাণ করা হবে মসজিদ, কবরস্থান, শিশুদের জন্য খেলার মাঠ।

দেশের পিছিয়ে পড়া বেদে সম্প্রদায়কে মূল ধারায় সম্পৃক্ত করতে ভূমিহীন ৫৯টি পরিবারকে মুজিববর্ষের উপহার হিসেবে জমিসহ আধাপাকা বাড়ি দিচ্ছে সরকার।

ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গ্রামের মাজদিয়া বাঁওড়ের পাশেই চলছে বিশাল নির্মাণযজ্ঞ। সেখানেই ঠাঁই হবে কালীগঞ্জ উপজেলার ৫৯ পরিবারের প্রায় ৩০০ মানুষের।

দেশের ইতিহাসে বেদে সম্প্রদায়ের জন্য এটাই সবচেয়ে বড় পল্লি হতে যাচ্ছে। সম্প্রদায়ের ঐতিহ্যের কথা মাথায় রেখে পল্লিটি নির্মাণ হচ্ছে জলাধারের পাশেই।

আগামী জুনের মধ্যেই এ বাড়িগুলো বেদে সম্প্রদায়ের লোকজনের কাছে হস্তান্তর করতে পারা যাবে বলে মনে করছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

দেশে সমতল পর্যায়ে যে ৫০টি ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী আছে তাদের জন্য মুজিববর্ষের প্রথম ও দ্বিতীয় পর্যায় মিলিয়ে ৬ হাজার ৫০০ গৃহ নির্মাণ করা হচ্ছে, যার মধ্য সবচেয়ে বড় বেদেপল্লি হতে যাচ্ছে কালীগঞ্জের জগন্নাথপুরে।

শুক্রবার গিয়ে দেখা গেছে, পুরো এলাকা মাটি ফেলে ভরাট করা হয়েছে। নির্মাণাধীন এলাকাজুড়ে স্তূপ করে রাখা হয়েছে ইট। ব্যস্ত সময় পার করছেন নির্মাণ শ্রমিকরা।

৫৯ পরিবারের প্রায় ৩০০ লোকের বাসস্থানের ঘরের পাশাপাশি সেখানে নির্মাণ করা হবে মসজিদ, কবরস্থান, শিশুদের জন্য খেলার মাঠ।

যেসব ভূমিহীন বেদেদের বাড়ি দেয়ার জন্য তালিকা করা হয়েছে, তাদের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

পরম্পরা অনুযায়ী সাপ খেলা দেখান কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজার ইউনিয়নের মদিনাপারার শহীদুল ইসলাম। নিজের কোনো জমি নেই, পরের জায়গায় থাকি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমি গরিব মানুষ, ঘর পাইলে ভালো হবে৷ পরিবেশটা একটু ভালো হয়। ঘর পাইলে নাতি-নাতনিদের শিক্ষিত করে বিদ্যান করব, ওই স্বপ্ন দেখছি।

‘বাবা-দাদা আমাগো মূর্খ বানাইয়া থুইয়া গেছে, যদি আমাদের একটু শিক্ষা দিয়া যাইত, তাইলে ভালো হতো। তালিকা নিয়া গেছে, নাম সব নিয়া গেছে।’

উপহারের ঘরে হচ্ছে বেদেপল্লি

একই পাড়ার রঙ্গিলা বেগম গ্রামে গ্রামে ঘুরে ‘দাঁতের পোকা তুলে’ ও শিঙ্গা লাগিয়ে আয়-রোজগার করেন। ২২ বছর বয়সী নারীর রয়েছে দুই সন্তান। স্বামী দেখান বানরের খেলা। যা উপার্জন হয় তা দিয়েই চলে সংসার।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমরা মাঠে-ঘাটে থাকি, এবার একটা ঠিকানা হবে। সামর্থ্য হলে পোলাপানদের লেখাপড়া করামু।’

ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মনিরা বেগম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ঝিনাইদহ উপজেলার কালীগঞ্জে বেদেদের জন্য ৫৯টি ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। বেদে সম্প্রদায় এখনই উল্লসিত তাদের ঘর পাওয়ার বিষয়টি জেনে। প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বিনির্মাণের জন্য এই প্রকল্পটি সফলতার সঙ্গে বাস্তবায়নে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ হয়েছি।’

মাজদিয়া বাঁওড়ের পাশে জায়গাটা নির্ধারণ করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ঘরের পাশাপাশি এখানে মসজিদ, কবরস্থান, শিশুদের জন্য খেলার মাঠ করে দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রতিটা ঘরে দুইটা রুম আছে, একটা রান্নাঘর, বাথরুম থাকবে। ঘরপ্রতি ব্যয় হচ্ছে ২ লাখ ৫৯ হাজার ৫০০ টাকা। ঘরের চারপাশে কিছু খোলা জায়গা রেখেছি, তারা যাতে গবাদি পশু পালন এবং গাছ লাগিয়ে পরিবেশটা সুন্দর রাখতে পারে। সার্বিকভাবে এটা যাতে আধুনিক পল্লিনিবাসের সুবিধা পায়, সে লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’

যাযাবর জনগোষ্ঠীর মধ্যে অন্যতম বেদে সম্প্রদায় কালীগঞ্জ উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে মানবেতর জীবনযাপন করছিল উল্লেখ করে ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া জেরিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত একটি পরিবারও গৃহহীন থাকবে না। সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা প্রশাসন কালীগঞ্জ বেদে সম্প্রদায়ের ৫৯ পরিবারকে চিহ্নিত করেছে। জলাধারের সঙ্গে তাদের যে জীবনযাপন ইতিহাস-ঐতিহ্য আছে তার সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ একটি পরিবেশ আমরা নির্ধারণ করেছি।’

প্রায় ২ একর জমি অবৈধ দখলদারদের কাছে ছিল জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা দখলমুক্ত করেছি, যার আনুমানিক বাজারমূল্য ৪০ লাখ টাকা। আমরা আশা করছি, এই পরিবারগুলো উন্নত জীবন যাপন করতে পারবে। পুনর্বাসন সম্পন্ন হলে তাদের নতুন প্রজন্ম শিক্ষা স্বাস্থ্যের পাশাপাশি নাগরিক সুবিধা গ্রহণ করে একটি উন্নত প্রজন্ম পাবে বলে আমি বিশ্বাস করি।’

১৯৯৭ সাল থেকে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাধ্যমে চলতি অর্থবছর পর্যন্ত পুনর্বাসিত পরিবারের সংখ্যা ৭ লাখ ৮ হাজার ৩টি। পরিবারের সদস্য ৫ জন ধরে হিসাব করলে সে সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৫ লাখ ৪০ হাজার ১৫ জন।

চলতি অর্থবছরে বরাদ্দ একক গৃহের সংখ্যা ১ লাখ ৮২ হাজার ৮০৩টি। বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ ৩ হাজার ৯৭১ কোটি ৬ লাখ ৮৩ হাজার টাকা।

আরও পড়ুন:
উপহারের ঘরে সেলুন, সচ্ছলতায় মুখে হাসি
স্বাবলম্বী হয়ে উপহারের ঘর ফেরত দিলেন জমির
ভোলায় ১৫০ পরিবার পেল প্রধানমন্ত্রীর উপহারের জমি-বাড়ি
হাতুড়ি দিয়ে উপহারের ঘর ভেঙে মিডিয়ায় প্রচার
উপহারের ঘর বরাদ্দে চাঁদা নেয়ার অভিযোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangabandhus arrest in language movement on DU Day list

ঢাবির দিবসের তালিকায় ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর গ্রেপ্তার

ঢাবির দিবসের তালিকায় ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর গ্রেপ্তার ভাষা আন্দোলনের সময় ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ খুব গুরুত্বপূর্ণ দিন। আন্দোলনের এই পর্যায়ে বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে ছিলেন। সেদিন তাকে রাজবন্দি হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়। প্রতি বছর গ্রেপ্তারের এই দিনটিকে এখন থেকে দিবস হিসেবে পালন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। ছবি: সংগৃহীত
সভায় উপস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন দিবসটি পালনের জন্য প্রস্তাব তোলেন। সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ভাষা আন্দোলনের সূচনা হয়। আন্দোলন করতে গিয়ে তিনি গ্রেপ্তার এবং কারাবরণ করেন। তাই সার্বিকভাবে আমরা মনে করি, ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ে দিনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করা উচিত। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আমি এ আহ্বান করেছি। উপাচার্য এতে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন।’

ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের তখনকার ছাত্র জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হয় ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ। প্রতি বছর গ্রেপ্তারের এই দিনটিকে এখন থেকে দিবস হিসেবে পালন করবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিয়াশীল ছাত্র সংগঠনের নেতাদের নিয়ে অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে পরিবেশ পরিষদের সভায় এই দিবস পালন নিয়ে আলোচনা হয়।

সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সভাপতিত্ব করেন। সভায় উপস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন দিবসটি পালনের জন্য প্রস্তাব তোলেন।

সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে ভাষা আন্দোলনের সূচনা হয়। আন্দোলন করতে গিয়ে তিনি গ্রেপ্তার এবং কারাবরণ করেন। তাই সার্বিকভাবে আমরা মনে করি, ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয়ে দিনটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করা উচিত। ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে আমি এ আহ্বান করেছি। উপাচার্য এতে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছেন।’

ঢাবির দিবসের তালিকায় ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর গ্রেপ্তার

সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংগঠনের নেতাদের নিয়ে অধ্যাপক আব্দুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে পরিবেশ পরিষদের সভায় এই দিবসটি পালন নিয়ে আলোচনা হয়। সভায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সভাপতিত্ব করেন। ছবি: নিউজবাংলা

আর কী কী আহ্বান জানানো হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষার মূল সুর বহু ভাষিকতাকে রক্ষা করা এবং সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য।

কিন্তু ক্রিয়াশীল সংগঠনগুলোর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সভা সেখানে চাকমাভাষী, গারোভাষী এবং আদিবাসী যারা রয়েছেন তাদের কোনো প্রতিনিধিত্ব নেই৷ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যেন এদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত হয় সেটির জন্য আমরা আহ্বান জানিয়েছি।

‘এ ছাড়া আমরা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক পরিবেশ সমুন্নত রাখতে শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় চায়ের টংয়ের বাইরে অতিরিক্ত যেসব ভ্রাম্যমাণ দোকান রয়েছে, সেগুলো সরিয়ে দেয়া এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে ভারী যানবাহন বন্ধের বিষয়ে আহ্বান জানিয়েছি।’

১১ মার্চ দিবসটি উদযাপনের বিষয়ে উপাচার্য বলেন, ১৯৪৮ সালের ১১ মার্চ খুব গুরুত্বপূর্ণ দিন। ভাষা আন্দোলনের এই পর্বে বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে ছিলেন। তাকে রাজবন্দি হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু যেহেতু এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এবং ছাত্রনেতা ছিলেন, সেহেতু আমাদের দায়িত্বের জায়গাটা আরও বেশি। সুতরাং আমরা যখন এটি করব, তখন আমরা ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারব, বঙ্গবন্ধুর যে অনবদ্য অবদান ছিল সেটিতে শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ পাব।’

উপাচার্য আরও বলেন, ‘এটি আমাদের মূল্যবোধকে জাগ্রত করবে। ইতিহাসে যাদের অসাধারণ অবদান, তাদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য এসব দিবস আমাদের সুযোগ করে দেয়।’

সভা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ক্যাম্পাসে যানবাহন চলাচল সীমিতকরণ এবং ভ্রাম্যমাণ, অসহায়, দুস্থ ও ছিন্নমূল মানুষের তালিকা প্রণয়ন ও তাদের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনীর আওতায় আনার জন্য উদ্যোগ নেয়া হবে বলে সভায় অভিমত প্রকাশ করা হয়।

ছাত্রনেতাদের আলোচনার সূত্র ধরে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বিভিন্ন বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের পরিপ্রেক্ষিত ও যৌক্তিকতা তুলে ধরেন।

এ ছাড়া প্রথম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম সহজীকরণ, শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি লাঘব, সময়, শ্রম ও অর্থের সাশ্রয় ঘটানো এবং সেমিস্টার শিক্ষাকার্যক্রম আরও কার্যকর ও গতিশীল করার লক্ষ্যে ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষ থেকে চারটি ইউনিটের (ক, খ, গ ও চ) অধীনে ভর্তি পরীক্ষা গ্রহণের বিষয়ে সভায় আলোচনা করা হয়।

শিক্ষার্থীদের বিভাগ পরিবর্তনের সুযোগ প্রদানের বিষয়টি গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করার ওপরও গুরুত্বারোপ করা হয়।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান সুষ্ঠু, সুশৃঙ্খল, পরিকল্পিত ও নিয়মতান্ত্রিকভাবে এসব উদ্যোগ বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতাদের সহযোগিতা চান। ছাত্র সংগঠনের নেতারা এসব উদ্যোগ গ্রহণের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান এবং এ বিষয়ে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

সভায় অন্যদের মধ্যে উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ কে এম গোলাম রব্বানীসহ প্রক্টরিয়াল টিমের সদস্যরা ও ক্যাম্পাসে ক্রিয়াশীল বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধু: ভাষা আন্দোলনের নেপথ্য নায়ক
মুক্তায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি
চলে গেলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আবুল হাসেম
বঙ্গবন্ধুর নামে আরেক স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণে সমঝোতা স্মারক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Gaming apps are my Bangabandhu

এলো গেমিং অ্যাপস ‘আমার বঙ্গবন্ধু’

এলো গেমিং অ্যাপস ‘আমার বঙ্গবন্ধু’ বৃহস্পতিবার রমনা রেজিমেন্ট আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভা শেষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বিএনসিসি কন্টিনজেন্ট ক্যাডেটরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হকের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ছবি: নিউজবাংলা
‘আমার বঙ্গবন্ধু’ অ্যাপসের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে সহজভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। এই গেমিং অ্যাপটি ব্যবহারে বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেম, আদর্শ এবং নেতৃত্বের গুণাবলিতে বলীয়ান হওয়ার পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসী একটি জাতি গঠন করা সম্ভব হবে। গেমিং অ্যাপস শীর্ষক অনুষ্ঠান উপলক্ষে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুর অবিনাশী চেতনা ও আদর্শ জীবনী প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য বাংলা এবং ইংরেজি ভাষায় তৈরি করা হয়েছে অ্যাপভিত্তিক গেম ‘আমার বঙ্গবন্ধু’।

গেমটি সবার কাছে ছড়িয়ে দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় সার্বিক সহায়তা দিচ্ছে। ‘গেমিং অ্যাপস’ শীর্ষক অনুষ্ঠান উপলক্ষে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে।

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে গত ১৬ জানুয়ারি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং বিএনসিসি অধিদপ্তরের যৌথ উদ্যোগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জীবনবৃত্তান্ত ও জীবনাদর্শ নিয়ে নির্মিত ‘আমার বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক গেমিং অ্যাপসের উদ্বোধন করা হয়।

এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার রমনা রেজিমেন্ট আয়োজিত ভার্চুয়াল আলোচনা সভা শেষে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বিএনসিসি কন্টিনজেন্ট ক্যাডেটরা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. ইমদাদুল হকের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। এ সময় পিইউও আতিয়ার রহমান, সিইউও মো. মামুন শেখ, আর্মি স্টাফ এবং বিএনসিসি ক্যাডেটরা উপস্থিত ছিলেন।

‘আমার বঙ্গবন্ধু’ অ্যাপসের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর জীবনী ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে সহজভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। এই গেমিং অ্যাপটি ব্যবহারে বঙ্গবন্ধুর দেশপ্রেম, আদর্শ এবং নেতৃত্বের গুণাবলিতে বলীয়ান হওয়ার পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসী একটি জাতি গঠন করা সম্ভব হবে।

‘আমার বঙ্গবন্ধু’ মোবাইল গেমিং অ্যাপটি বাংলা এবং ইংরেজি ভাষায় তৈরি এমন একটি গেম, যা খেলার মাধ্যমে একজন ব্যক্তি বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য জীবনী সহজভাবে জানতে পারবেন এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শে দেশপ্রেম তথা নেতৃত্বের গুণাবলিতে উজ্জীবিত হবে।

‘আমার বঙ্গবন্ধু’ গেমিং অ্যাপস শীর্ষক অনুষ্ঠান উপলক্ষে এক প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। ১৬ জানুয়ারি থেকে শুরু হওয়া এই প্রতিযোগিতায় আগামী ২৬ মার্চ রাত ১২টা পর্যন্ত অংশগ্রহণ করা যাবে।

সর্বপ্রথমে অ্যান্ড্রয়েড গেমিং অ্যাপ ‘আমার বঙ্গবন্ধু’ ডাউনলোড করে মোবাইলে ইনস্টল করতে হবে। ইনস্টল করে গেমসটি চালু করার পর ইন্টারফেস আসবে। যেখানে একজন প্রতিযোগীকে ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে তালিকাভুক্ত হতে হবে।

গেমসটি খেলাকালীন দুটি সময় গণনা করার মাধ্যমে বিজয়ী নির্ণয় করা হবে। সেই ক্ষেত্রে এই সময় গণনা করে একটি ডাটাবেজ সার্ভারে জমা হবে এবং সেখান থেকে ওয়েব ইন্টারফেসের মাধ্যমে তা জানা যাবে। পরে বিভিন্ন পর্যায়ে খেলে সফল প্রতিযোগীরা জাতীয় পর্যায়ে পুরস্কার লাভে সক্ষম হবে।

আরও পড়ুন:
বঙ্গবন্ধু: ভাষা আন্দোলনের নেপথ্য নায়ক
মুক্তায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি
চলে গেলেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর আবুল হাসেম

মন্তব্য

বাংলাদেশ
International recognition of the March 25 massacre as genocide

২৫ মার্চের হত্যাযজ্ঞকে গণহত্যা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি

২৫ মার্চের হত্যাযজ্ঞকে গণহত্যা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি গণহত্যা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে একাত্তরের ২৫ মার্চের হত্যাযজ্ঞ। ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচের এই ঘোষণায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক সংগঠন ‘পাকিস্তানি দালাল রুখবে তারুণ্য’ আনন্দ প্রকাশ করেছে। সেই সঙ্গে সংগঠনটি আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে।

একাত্তরে বাংলাদেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর নির্মম হত্যাযজ্ঞকে ‘গণহত্যা’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচ।

পাকিস্তানিদের ওই বর্বরতার ৫০ বছর পূর্তিতে জেনোসাইড ওয়াচের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি গ্রেগরি এইচ স্ট্যানটন বৃহম্পতিবার তাদের ওয়েবসাইটে এই ঘোষণা দেন।

এ ঘোষণায় তিনি বলেন, ‘জেনোসাইড ওয়াচ এই স্বীকৃতি দিচ্ছে যে, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় বাঙালিদের ওপর যেসব অপরাধ করেছে, তার মধ্যে ছিল জোনোসাইড, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ।’

সেই সঙ্গে সংস্থাটি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য ও পাকিস্তানসহ জাতিসংঘের সব সদস্য দেশকে পাকিস্তানি বাহিনীর করা সেসব অপরাধকে জোনোসাইড, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং যুদ্ধাপরাধ’হিসেবে স্বীকার করে নিতে আহ্বান জানান।

এই ঘোষণায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ধারক সংগঠন ‘পাকিস্তানি দালাল রুখবে তারুণ্য’ আনন্দ প্রকাশ করেছে। সেই সঙ্গে সংগঠনটি আন্তর্জাতিক সংস্থা জেনোসাইড ওয়াচের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে।

এই স্বীকৃতির নেপথ্যে কাজ করা শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেনের ছেলে তৌহিদ রেজা নূরকে অভিনন্দন জানানো পাশাপাশি তার প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছে পাকিস্তানি দালাল রুখবে তারুণ্য।

এ বিষয়ে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হামজা রহমান অন্তর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা খুবই আনন্দিত ও আবেগ আপ্লুত এই খবরে। এটি নিঃসন্দেহে পাকিস্তান কর্তৃক বাঙালির ওপর একাত্তরে যে জেনোসাইড ঘটানো হয়েছিল সেই নৃশংসতার বিচার তরান্বিত করবে। আমরা পাকিস্তান রাষ্ট্র ও সেই সব গণহত্যাকারীদের বিচার দাবি করছি।’

বাঙালি জাতির মুক্তির আন্দোলনকে শ্বাসরোধ করতে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের রাতে এ দেশের নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী। ‘অপারেশন সার্চলাইট’নামের সেই অভিযানে কালরাতের প্রথম প্রহরে তৎকালীন পূব-পাকিস্তানের ঢাকায় চালানো হয় গণহত্যা। ২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে যান; শুরু হয় বাঙালির প্রতিরোধ যুদ্ধ।

নয় মাসের যুদ্ধে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ৩০ লাখ সাধারণ মানুষকে নির্বিচারে হত্যা করে। এসময় পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অত্যাচারে এক কোটি মানুষ পাশের দেশ ভারতে আশ্রয় নেয়।

পাকিস্তানি সেনাবাহিনী শহর থেকে গ্রামে সাধারণ মানুষের ঘর বাড়ি আগুনে পুড়িয়ে দেয় ও লুটপাট করে। এসময় তারা দুই লাখের বেশি নারীকে ধর্ষণ করে। যাকে জেনোসাইড বা মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে চিহ্নিত করে স্বীকৃতি দিয়েছ গণহত্যা নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংস্থা ‘জেনোসাইড ওয়াচ’।

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশের কাছে পাকিস্তানের ক্ষমা চাওয়া সময়ের দাবি
‘আজও শিউরে উঠি, চোখে পানি এসে যায়’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Bangabandhu Public Administration Medal instead of the name of Public Administration Medal

জনপ্রশাসন পদকের নাম বদলে ‘বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক’

জনপ্রশাসন পদকের নাম বদলে ‘বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক’ এ বছর থেকে জনপ্রশাসন পদকের নাম হবে বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। ফাইল ছবি
সরকারি কর্মচারী ব্যক্তিগত, দলগত বা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে পুরস্কারের জন্য আবেদন করতে পারবেন। সরকারি কর্মচারী/প্রতিষ্ঠানের জন্য বিধি দ্বারা নির্ধারিত কার্যপরিধির ওপর বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক বিবেচনা করা হবে।

এ বছর থেকে নতুন নামে দেয়া হবে জনপ্রশাসন পদক। এখন থেকে এই পদকের নাম হবে বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি নীতিমালা জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক নীতিমালা- ২০২২ নামের এ নীতিমালায় বলা হয়েছে, সাধারণ প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনা, উন্নয়ন প্রশাসন, সামাজিক উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা, মানব উন্নয়ন, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, পরিবেশ উন্নয়ন, দুর্যোগ ও সংকট মোকাবিলা, অপরাধ প্রতিরোধ, জনসেবায় উদ্ভাবন, সংস্কার, গবেষণা এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বঙ্গবন্ধু ব্যক্তি, দল বা প্রতিষ্ঠানকে এ বছর ১২টি পদক দেয়া হবে।

নীতিমালায় বলা হয়, জনপ্রশাসনে কর্মরত কর্মচারীদের সৃজনশীল ও গঠনমূলক কার্যক্রম উৎসাহিত করার মাধ্যমে কর্মস্পৃহা বৃদ্ধি, দক্ষতা উন্নয়নে উৎসাহিতকরণ ও সরকারের উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন অধিকতর গতিশীল করার লক্ষ্যে সরকার প্রতি বছর জনপ্রশাসন পদক প্রদানের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

পদক প্রদানের কার্যক্রমকে সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার লক্ষ্যে ‘জনপ্রশাসন পদক নীতিমালা ২০১৫ (২০১৬ সালে সংশোধিত)’ বাতিল করে এ নীতিমালা প্রণয়ন করা হলো।

সরকারি কর্মচারী ব্যক্তিগত, দলগত বা প্রাতিষ্ঠানিকভাবে পুরস্কারের জন্য আবেদন করতে পারবেন। সরকারি কর্মচারী/প্রতিষ্ঠানের জন্য বিধি দ্বারা নির্ধারিত কার্যপরিধির ওপর বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদক বিবেচনা করা হবে।

পুরস্কার হিসেবে দেয়া হবে ২১ ক্যারেট মানের ১৫ গ্রাম ওজনের একটি স্বর্ণপদক এবং রাষ্ট্রীয় মনোগ্রাম সম্বলিত সম্মাননাপত্র।

এছাড়া, ব্যক্তিগত অবদানের জন্য ২ লাখ টাকা এবং দলগত অবদানের জন্য দেয়া হবে ৫ লাখ টাকা। এক্ষেত্রে দলের সদস্য সংখ্যা হতে হবে ৫ জন। দলের প্রত্যেক সদস্যই স্বর্ণপদক, সম্মাননাপত্র ও ক্রেস্ট পাবেন।

প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে দেয়া হবে স্বর্ণপদক, ক্রেস্ট ও সম্মাননাপত্র। সরকার নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে পুরস্কারের অর্থের পরিমাণ কমাতে বা বাড়াতে পারবে।

সরকারি কর্মচারি একই প্রকৃতির কাজের জন্য একবারই পদক পাবেন। কেউ তার কোন অবদানের জন্য অন্য কোন জাতীয় পদকের জন্য একবার পুরস্কার অর্জন করলে তিনি তার ওই কাজের জন্য ফের জনপ্রশাসন পদকের জন্য আবেদন করতে পারবেন না বলে জানানো হয়েছে নীতিমালায়।

রাষ্ট্রবিরোধী কার্যকলাপ বা নৈতিক স্খলনজনিত কোন ফৌজদারি অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হয়ে কোন পদকপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এক বছর বা তার এর বেশি মেয়াদে চূড়ান্তভাবে কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে সরকার তার পদক প্রত্যাহার করতে পারবে।

বঙ্গবন্ধু জনপ্রশাসন পদকপ্রাপ্তদের নাম, পদবি ও অবদানের তথ্য সরকারি গেজেটে প্রকাশ করতে হবে। ইতোপূর্বে যারা জনপ্রশাসন পদক পেয়েছেন তাদের তথ্যও সরকারি গেজেটে প্রকাশ করতে হবে।

প্রশাসন কর্মকর্তাদের কাজের স্বীকৃতি দিতে ২০১৬ সালের ২৩ জুলাই প্রথমবার দেয়া হয় জনপ্রশাসন পদক। প্রতিবছরই এ পদক দেয়া হচ্ছে।

মন্তব্য

p
উপরে