× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

বাংলাদেশ
The rent of watermelon truck is being increased by syndicate
hear-news
player

‘সিন্ডিকেট করে’ বাড়ানো হচ্ছে তরমুজবাহী ট্রাকের ভাড়া

সিন্ডিকেট-করে-বাড়ানো-হচ্ছে-তরমুজবাহী-ট্রাকের-ভাড়া
ভোলার সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘আমি আগে ৩৮ থেকে ৩৯ হাজার টাকায় ট্রাক ভাড়া করে তরমুজ পাঠিয়েছি। এখন সেই একই দূরত্বে ৬৭ হাজার টাকা ভাড়া চায়। একাধিক এজেন্সিতে যোগাযোগ করেছি। সবাই একই রকম ভাড়া চাচ্ছে।’

বরগুনায় সপ্তাহের ব্যবধানে হঠাৎ করে বেড়েছে ট্রাকের ভাড়া। দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে তরমুজ কিনতে আসা পাইকারদের অভিযোগ, পরিবহন এজেন্সিগুলো সিন্ডিকেট করে দেড়গুণের বেশি ভাড়া বাড়িয়েছে।

এজেন্সিগুলোর দাবি, চাহিদা অনুযায়ী ট্রাক না থাকায় অন্য জেলা থেকে বাড়তি ভাড়ায় ট্রাক আনতে হচ্ছে। তাই ভাড়া বাড়াতে হয়েছে।

আন্তজেলা ট্রাক পরিবহন মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের তথ্য অনুযায়ী, বরগুনা জেলায় তিন শতাধিক ট্রাক আছে। ২১টি পরিবহন এজেন্সির আওতায় এগুলো চলাচল করে। তরমুজের মৌসুমে পাইকাররা এসব এজেন্সির মাধ্যমে ট্রাক ভাড়া করে।

আমতলী-নিমতলী এলাকার বাসিন্দা তরমুজের পাইকার বাকের মিয়া বলেন, ‘ট্রান্সপোর্ট এজেন্সিগুলো সিন্ডিকেট করে ট্রাক সংকট দেখিয়ে দেড়গুণের বেশি ভাড়া আদায় করছে। আমি আগের ভাড়া হিসাবে প্রায় ১০ লাখ টাকার তরমুজের ক্ষেত কিনেছিলাম। এখন ট্রাকের ভাড়া দেড়গুণের বেশি বেড়েছে। এত ভাড়ায় ট্রাক নিলে আমি লসে পড়ে যাব।’

ভোলার সাইদুল ইসলাম বরগুনা থেকে তরমুজ কিনে বিক্রি করবেন চট্টগ্রামে।

তিনি বলেন, ‘আমি আগে ৩৮ থেকে ৩৯ হাজার টাকায় ট্রাক ভাড়া করে তরমুজ পাঠিয়েছি। এখন সেই একই দূরত্বে ৬৭ হাজার টাকা ভাড়া চায়। একাধিক এজেন্সিতে যোগাযোগ করেছি। সবাই একই রকম ভাড়া চাচ্ছে।’

‘সিন্ডিকেট করে’ বাড়ানো হচ্ছে তরমুজবাহী ট্রাকের ভাড়া

পঞ্চায়েত ট্রেডার্স নামের একটি পরিবহন এজেন্সির পরিচালক সোহেল মিয়া বলেন, ‘সপ্তাহখানেক আগেও আমরা ২৫ হাজার টাকায় ঢাকায়, ৩২ হাজারে চট্টগ্রামে, ২৮ হাজারে ফেনীতে ও ১৮ হাজারে নোয়াখালীতে তরমুজ পরিবহন করতাম। এখন ক্ষেত থেকে তরমুজ কাটা শুরু হওয়ায় ট্রাকের চাহিদা বেড়েছে। ট্রাক পাওয়া যাচ্ছে না। এ কারণেই ভাড়া বেড়েছে।’

আন্তজেলা ট্রাক মালিক-শ্রমিক ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক মনজুরুল আলম জন জানান, বছরখানেক আগে বেসিক ট্রেড ইউনিয়ন নামের একটি সংগঠন ট্রাক মালিক-শ্রমিকদের জিম্মি করে এজেন্সির নামে চাঁদা আদায় করেছে। পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দেয়ার পর এরা কিছুদিন আগে টাউনহল থেকে নিজেদের অফিস গুটিয়ে নেয়।

জন বলেন, ‘তরমুজের মৌসুম শুরু হওয়ার পর এখন নতুন বাসস্ট্যান্ড এলাকায় স্থানীয় ট্রাক জিম্মি করেছেন বেসিক ট্রেড ইউনিয়নের আবুল হোসেন, শাহ আলম ও মো. জুলহাসসহ আরও কয়েকজন। তারা আশপাশের জেলা থেকে ট্রাক ভাড়া করে এনে বাসস্ট্যান্ডের পাশের মহাসড়কে রেখেছেন।

‘ট্রাকের বেশি চাহিদা থাকায় পাইকারদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নিচ্ছেন। এই চক্রের বাইরে কোনো ট্রাক তরমুজ পরিবহন করলে তারা সড়কে ট্রাক থামিয়ে এজেন্সির নামে ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা আদায় করেন।’

শুভ ট্রান্সপোর্ট এজেন্সির স্বত্বাধিকারী আবুল হোসেন বলেন, ‘সংকট মেটাতে আমরা পাইকারদের সুবিধার জন্য দূরের জেলা থেকে খালি ট্রাক এনেছি। দূর থেকে খালি ট্রাক আসার একটা খরচা দিতে হয়। তার ওপর ঈদের মৌসুমে ট্রাক পাওয়া যায় না। সব মিলিয়ে ভাড়া একটু বেড়েছে।

‘এখানে আমাদের এজেন্সির খরচা বাবদ ১ হাজার টাকার বেশি কিছুই নেই না। যারা সিন্ডিকেটের কথা বলছে তারা আমাদের এগেইন্সট পার্টি। তারা তো আমাদের বিরুদ্ধে বলবেই। আপনি দেখেন, পার্টি ট্রাকের জন্য হাহাকার করছে। ট্রাক দিতে পারছি না। এজন্যই ভাড়া বেড়েছে।’

এ বিষয়ে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর মল্লিক বলেন, ‘অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়টি আমি খোঁজ নেব। যদি এজেন্সির নামে বেশি ভাড়া নেয়া হয় তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
হতাশার তরমুজ!
প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি, জানে না প্রশাসন
বেশি দামে তরমুজ ও খেজুর বিক্রির দায়ে জরিমানা
লোকে কেন আছাড় মেরে তরমুজ ভাঙছে

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Two convicts sentenced to 5 years in Yaba case

ইয়াবার মামলায় ২ আসামিকে ৫ বছরের সাজা

ইয়াবার মামলায় ২ আসামিকে ৫ বছরের সাজা
২০১৩ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি নগরের কোতোয়ালি থানাধীন স্টেশন রোডের ঢাকা হোটেল থেকে ৬৯৫ পিস ইয়াবাসহ আটক হয়েছিলেন শফি ও আবছার।

২০১৩ সালে ৬৯৫ পিস ইয়াবাসহ আটকের ঘটনায় চট্টগ্রামে দুই আসামির ৫ বছরের সাজা দিয়েছে আদালত। সাজাপ্রাপ্ত দুই আসামি ৩৫ বছরের মোহাম্মদ শফি ও ৩৩ বছরের আবছার উদ্দিন জামিনে আছেন। তাদের দুইজনের বাড়ি কক্সবাজার জেলার টেকনাফের কুতুবুনিয়া এলাকায়।

মঙ্গলবার দুপুরে চতুর্থ অতিরিক্ত চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভূঁঞার আদালত এ রায় দেয়।

আদালতের বেঞ্চ সহকারী ওমর ফুয়াদ বিষয়টি নিশ্চিত করে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোতোয়ালি থানায় মাদক মামলায় পলাতক দুই আসামিকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। একইসাথে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করে অনাদায়ে আরও ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে।

তবে রায় ঘোষণার সময় আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন আসামিরা।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৩ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি নগরের কোতোয়ালি থানাধীন স্টেশন রোডের ঢাকা হোটেল থেকে ৬৯৫ পিস ইয়াবাসহ শফি ও আবছারকে আটক করা হয়। পরে কোতোয়ালি থানায় তাদের বিরুদ্ধে মাদক মামলাটি করে পুলিশ।

আরও পড়ুন:
ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের মামলায় ৮ বছরের কারাদণ্ড  
সাবেক শুল্ক কর্মকর্তার ৮ বছর সাজা
হত্যার ১৮ বছর পর ফাঁসি হচ্ছে ২ আসামির
খুলনা জেএমবি-প্রধানের ২০ বছরের কারাদণ্ড
হত্যার ২০ বছর পর সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেপ্তার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
27 firearms under the ground of the building under construction

নির্মাণাধীন ভবনের মাটির নিচে ২৭ আগ্নেয়াস্ত্র

নির্মাণাধীন ভবনের মাটির নিচে ২৭ আগ্নেয়াস্ত্র
এসপি বলেন, ‘অস্ত্রগুলো পরিত্যক্ত। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের সময় সেগুলো ব্যবহার করা হয়েছিল।’

ঠাকুরগাঁও শহরের আশ্রমপাড়ার একটি নির্মাণাধীন ভবন থেকে ২৭টি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

মো. হানিফ নামে এক ব্যক্তির ওই ভবন থেকে মঙ্গলবার বেলা ৩টার দিকে সেগুলো উদ্ধার করা হয় বলে ঘটনাস্থল থেকে জানান জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মোহম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেন।

তিনি নিউজবাংলাকে জানান, ভবনের নির্মাণকাজের সময় শ্রমিকরা মাটি খুঁড়লে অস্ত্র দেখতে পান। তারাই পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ গিয়ে ২৭টি আগ্নেয়াস্ত্র পায়। আরও অস্ত্র আছে কি না তা বের করতে পুলিশ কাজ করছে।

এসপি বলেন, ‘ভবনের মালিককে খবর দেয়া হয়েছে। তিনি পঞ্চগড়ে থাকায় আসতে দেরি হচ্ছে। আমরা তার জন্য অপেক্ষা করছি।

‘অস্ত্রগুলো পরিত্যক্ত। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের সময় সেগুলো ব্যবহার করা হয়েছিল।’

নির্মাণাধীন ভবনের মাটির নিচে ২৭ আগ্নেয়াস্ত্র

শ্রমিকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বহু বছরের পুরোনো ভবন ভেঙে সেখানে নতুন ভবন নির্মাণ করা হচ্ছে। নাজির হাওলাদার নামে এক বীর মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি ছিল সেটি। তার উত্তরসূরিদের কাছ থেকে পুরোনো ভবন কিনে সেখানে নতুন করে বাড়ি বানাচ্ছেন হানিফ।

আরও পড়ুন:
পরিত্যক্ত ঘরে বালিশে অস্ত্র-গাঁজা
অস্ত্র ব্যবসায় নতুন শক্তি ভারত
পিস্তল-গুলিসহ ২ যুবক আটক
রাশিয়ায় জীবাণু অস্ত্রের হামলা পাখির মাধ্যমে!
এত অবৈধ অস্ত্রের চাহিদা কোথায়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The boat sank in the storm Another body was found

ঝড়ে নৌকাডুবি: মিলল আরেক মরদেহ

ঝড়ে নৌকাডুবি: মিলল আরেক মরদেহ
জালালাবাদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ওবায়দুল্লাহ ইসহাকের বরাত দিয়ে ওসি জানান, বন্যায় সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় রোববার রাতে নৌকায় করে খারইল বিলের ওপর দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন আছকন্দর, রেজাখসহ কয়েকজন। ঝড়ের কবলে পড়ে বিলের মাঝামাঝি জায়গায় নৌকাটি ডুবে যায়।

সিলেট সদরে ঝড়ের কবলে পড়ে বিলে ডু্বে যাওয়া নৌকার আরেক আরোহীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

জালালাবাদ থানার লালপুর গ্রামের লোকজন মঙ্গলবার বিকাল ৩টার দিকে মরদেহ দেখে জানালে পুলিশ গিয়ে উদ্ধার করে।

মৃত ব্যক্তির নাম রেজাখ আলী, তার বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার রায়েরগাঁও গ্রামে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হুদা খান।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় নৌকা ডুবে নিখোঁজ আছকন্দর আলীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আছকন্দরের বাড়ি একই উপজেলার পুটামারা গ্রামে।

জালালাবাদ ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ওবায়দুল্লাহ ইসহাকের বরাত দিয়ে ওসি জানান, বন্যায় সড়ক পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় রোববার রাতে নৌকায় করে খারইল বিলের ওপর দিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন আছকন্দর, রেজাখসহ কয়েকজন। ঝড়ের কবলে পড়ে বিলের মাঝামাঝি জায়গায় নৌকাটি ডুবে যায়। অন্যরা সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও নিখোঁজ হন ওই দুজন।

আরও পড়ুন:
ঝড়ের কবলে নৌকা ডুবে মৃত্যু, নিখোঁজ ১
লিবিয়া উপকূলে ৫০০ বাংলাদেশি আটক
তিতাসে নৌকাডুবির ৮ ঘণ্টা পর মিলল মরদেহ
ভূমধ্যসাগরে নৌকাডুবিতে কমপক্ষে ১০০ জনের মৃত্যু
ল‌ঞ্চের ধাক্কায় নৌকা ডু‌বি, নি‌খোঁজ জে‌লে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two Rohingyas burnt to death in gas cylinder explosion

গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ দুই রোহিঙ্গার মৃত্যু

গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ দুই রোহিঙ্গার মৃত্যু
গেল ১২মে কুতুপালং ক্যাম্প-১ ডি/৪ ব্লকে নুরুল আলমের ঘরে গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়।

কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গা শিবিরে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন রোহিঙ্গা বাবা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে।

চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মঙ্গলবার দুপুরে তারা মারা যান।

তারা হলেন ৫৯ বছরের নুরুল আলম ও তার ছেলে ১২ বছরের আনোয়ার কামাল।

বিকেলে বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার ১৪ আমর্ড পুলিশ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক এসপি নাঈমুল হক।

তিনি জানান, গেল ১২মে কুতুপালং ক্যাম্প-১ ডি/৪ ব্লকে নুরুল আলমের ঘরে গ্যাসের সিলিন্ডার বিস্ফোরণ হয়। তার স্ত্রী চুলায় রান্না বসাতে গেলে চুলার পাইপে আগুন ধরে সিলিন্ডার বিস্ফোরিত হয়। তাতে ঘরে ও আশপাশে থাকা ছয়জন দগ্ধ হন।

তাদের কক্সবাজার সদর হাসপাতাল ও পরে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন:
সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ৬ রোহিঙ্গা দগ্ধ
সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই নারী দগ্ধ
স্টিলমিলে বিস্ফোরণ, ৩ শ্রমিক আশঙ্কাজনক
কিউবার হোটেলে বিস্ফোরণে মৃত বেড়ে ২২
করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিস্ফোরণ, তিন চীনাসহ নিহত ৪

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Body in one jute field and head in another

এক পাটক্ষেতে দেহ, আরেকটিতে মাথা

এক পাটক্ষেতে দেহ, আরেকটিতে মাথা
ওসি জানান, সকালে কৃষকরা পাটক্ষেতে কাজ করতে গিয়ে বস্তায় মরদেহটি দেখে পুলিশকে জানায়। পুলিশ গিয়ে দেখে, মরদেহটির মাথা নেই। খোঁজাখুজি করে পাশের আরেক পাটক্ষেতে পাওয়া যায় মাথা। 

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে পাটক্ষেত থেকে এক নারীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার দাদপুর ইউনিয়নের হাসামদিয়া গ্রামের পাটক্ষেত থেকে মঙ্গলবার দুপুরে মরদেহটি একটি বস্তায় পাওয়া যায়।

বোয়ালমারী থানার ওসি মোহাম্মদ নুরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সকালে কৃষকরা পাটক্ষেতে কাজ করতে গিয়ে বস্তায় মরদেহটি দেখে পুলিশকে জানায়। পুলিশ গিয়ে দেখে, মরদেহটির মাথা নেই। খোঁজাখুজি করে পাশের আরেক পাটক্ষেতে পাওয়া যায় মাথা।

তিনি আরও জানান, মরদেহটি নারীর বলে নিশ্চিত হওয়া গেলেও তার পরিচয় জানা যায়নি। ধারণা করা হচ্ছে ৮ থেকে ১০ দিন আগে তাকে হত্যার পর মরদেহ ফেলে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
লাউয়ের ক্ষেতে শিশুর মরদেহ 
খালে ভাসছিল যুবকের মরদেহ
যুবকের হাত বাঁধা ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার 
ধানক্ষেতে মরদেহ, একজন আটক
ধান শুকাতে গিয়ে সন্তান হারালেন দুই মা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two were sentenced to death in the murder case while four were sentenced to life imprisonment

হত্যার দায়ে ২ আসামির মৃত্যুদণ্ড, ৪ জনের যাবজ্জীবন

হত্যার দায়ে ২ আসামির মৃত্যুদণ্ড, ৪ জনের যাবজ্জীবন
রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত আইনজীবী রঞ্জন বসাক রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও আসামি পক্ষের আইনজীবী বুলবুল আহমেদ গোলাপ ও আহসান হাবীব উচ্চ আদালতে আপিলের কথা জানিয়েছেন।

মানিকগঞ্জের ঘিওরে প্রাইভেটকার চালক জাহাঙ্গীর আলম হত্যা মামলায় দুইজনের মৃত্যুদণ্ড এবং চারজনের যাবজ্জীবন দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেক আসামিকে ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

মানিকগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক উৎপল ভট্টাচার্য্য এ রায় ঘোষণা করেন।

রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত আইনজীবী রঞ্জন বসাক নিউজবাংলাকে রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত জাহাঙ্গীর আলম ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার ঘোষেবের এলাকার মুকলেসুর রহমানের ছেলে।

মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আসামিরা হলেন, ওমর হোসেন সাইফুল, আরিফুজ্জামান সজীব; যাবজ্জীবন পেয়েছেন আব্দুল্লাহ আল মামুন, ফরহাদ হোসেন, মোহাম্মদ আলী সীমান্ত ও আজিম খান। এর মধ্যে সাইফুল, সজীব, সীমান্ত পলাতক। আসামিদের সবার বাড়ি টাঙ্গাইলের নাগরপুরে।

মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ২০১১ সালের ২৮ জানুয়ারি মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার কুসন্ডা এলাকায় চালক জাহাঙ্গীর আলমকে শ্বাসরোধে হত্যা করে প্রাইভেটকার নিয়ে পালিয়ে যান আসামিরা। পরে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

এদিন রাতেই ঘিওর থানার এসআই লুৎফর রহমান অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন। গ্রেপ্তার করা হয় ছয় আসামিকে। ২০১২ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি আসামিদের অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযগপত্র দেয়া হয়।

১৬ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিচারক এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত আইনজীবী রঞ্জন বসাক রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করলেও আসামি পক্ষের আইনজীবী বুলবুল আহমেদ গোলাপ ও আহসান হাবীব উচ্চ আদালতে আপিলের কথা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড
পারিবারিক বিরোধে স্ত্রী হত্যায় মৃত্যুদণ্ড
যৌতুক না পেয়ে স্ত্রী হত্যায় মৃত্যুদণ্ড
হত্যা মামলায় চারজনের মৃত্যুদণ্ড
বাবাকে হত্যার দায়ে মৃত্যুদণ্ড, পরে মুক্তি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
4 arrested for killing the driver and snatching the easybike

ইজিবাইক ছিনতাই করতে হত্যা করা হয় চালককে: পুলিশ

ইজিবাইক ছিনতাই করতে হত্যা করা হয় চালককে: পুলিশ ইজিবাইক চালক হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার আসামিরা। ছবি: নিউজবাংলা
নাটোর এসপি লিটন কুমার সাহা বলেন, ‘ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপর আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। বিকেলে আসামিদের আদালতে তোলা হবে।’

নাটোরের লালপুরে চালককে শ্বাসরোধে হত্যার পর ইজিবাইক ছিনতাইয়ের ঘটনায় করা মামলায় চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গ্রেপ্তারা হলেন, লালপুরের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের সজিব হোসেন, রবিউল ইসলাম, সদর উপজেলার কাফুরিয়া এলাকার মেহেদী হাসান ও দস্তানাবাদ গ্রামের সাগর আলী।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে শহরের বড় হরিশপুর এলাকার পুলিশ লাইনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানানো হয়।

পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে বড়াইগ্রামের মহিষভাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা খোরশেদ আলম মিলন ইজিবাইক নিয়ে বাড়ি থেকে বের হন। সেদিন রাতে মিলন বাড়ি না ফেরায় ও তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ থাকায় স্বজনরা তাকে অনেক খোঁজাখুঁজি করে।

পরে মিলনের পরিবার বিষয়টি বড়াইগ্রাম থানার পুলিশকে অবহিত করে। পর দিন সন্ধ্যায় পাশের লালপুর উপজেলার ঘাটচিলান এলাকায় সড়কের পাশে আখের ক্ষেত থেকে মিলনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ সুপার আরও জানান, এ ঘটনায় পরদিন নিহতের বাবা ফখরুল ইসলাম লালপুর থানায় হত্যা মামলা করেন। এরপর ঘটনার অনুসন্ধানে নামে জেলা পুলিশের ৬টি টিম।

পরে পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় সোমবার রাতভর অভিযান চালিয়ে সজিব, মেহেদী, রবিউল ও সাগরকে গ্রেপ্তার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আসামিরা মিলনকে হত্যার কথা স্বীকার করে। তারা জানান, ১৪ মে শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে বনপাড়া বাজার থেকে লালপুরের ঘাটচিলানে যাওয়ার কথা বলে তারা মিলনের নতুন ইজিবাইকটি ২৫০ টাকায় ভাড়া করে।

ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে কৌশলে ইজিবাইকটি ভাড়া করেন সজিব, মেহেদী, রবিউল ও আরেকজন। ঘাটচিলান এলাকায় পৌঁছালে তারা চালক মিলনকে শ্বাসরোধে হত্যার পর মরদেহ আখক্ষেতে ফেলে চলে যায়। পরে ইজিবাইকটি মেহেদীর বাড়িতে রেখে আসে।

এসপি লিটন কুমার সাহা বলেন, ‘ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপর আসামিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে। বিকেলে আসামিদের আদালতে তোলা হবে।’

আরও পড়ুন:
ইজিবাইক ‘ছিনিয়ে নিতে’ চালককে হত্যা

মন্তব্য

উপরে