× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Reserve theft case not dismissed Bangladesh Bank
hear-news
player
google_news print-icon

রিজার্ভ চুরির মামলা খারিজ হয়নি: বাংলাদেশ ব্যাংক

রিজার্ভ-চুরির-মামলা-খারিজ-হয়নি-বাংলাদেশ-ব্যাংক
রিজার্ভের অর্থ চুরির চার বছর পর ২০২০ সালে ৬ কোটি ৬৪ লাখ ডলার উদ্ধারে মামলা করে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ফাইল ছবি
কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, রিজার্ভ চুরির অভিযোগ থেকে ফিলিপাইনের দুটি ক্যাসিনোকে অব্যাহতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আদালত। আর ক্যাসিনো ব্যবসায়ী কিম অংকে অব্যাহতির আবেদন খারিজ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের অভিযোগের জবাব দিতে বলা হয়েছে। তবে মূল অভিযুক্ত আরসিবিসি ব্যাংকসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মামলা চলবে কিনা সে বিষয়ে এখনও রায় হয়নি।

রিজার্ভ চুরির মামলা খারিজ হয়নি। অভিযুক্ত ১৯টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে কেবল ব্লুম্বারি ও ইস্টার্ন হাওয়াই নামের দুটি প্রতিষ্ঠানকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক বুধবার এ কথা জানিয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক বলছে, রিজার্ভ চুরির অভিযোগ থেকে ফিলিপাইনের দুটি ক্যাসিনোকে অব্যাহতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের আদালত। আর ক্যাসিনো ব্যবসায়ী কিম অংকে অব্যাহতির আবেদন খারিজ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের অভিযোগের জবাব দিতে বলা হয়েছে। তবে মূল অভিযুক্ত আরসিবিসি ব্যাংকসহ অন্যদের বিরুদ্ধে মামলা চলবে কিনা সে বিষয়ে এখনও রায় হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের আইনি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান কজন ও’কনর এমন তথ্য জানিয়েছে।

রিজার্ভ থেকে চুরি হয়ে যাওয়া অর্থ উদ্ধার ও দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানিয়ে ২০২০ সালের ২৭ মে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক কাউন্টি সুপ্রিম কোর্টে রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংক এবং ১৯ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা করে বাংলাদেশ। এরপর আরসিবিসিসহ ৫জন বিবাদী মামলা থেকে অব্যাহতির আবেদন করে। গত ৮ এপ্রিল দেশটির আদালত আংশিক রায় দিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের হিসাব থেকে সাইবার হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে চুরি করা অর্থ উদ্ধারের লক্ষ্যে নিউ ইয়র্ক কাউন্টি সুপ্রিম কোর্টে করা মামলায় ৮ এপ্রিল দেয়া আংশিক রায় প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংক বুধবার একথা জানায়।

বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান কর্মকর্তা মাসুদ ‍বিশ্বাস নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংক অবহিত। তবে মামলা খারিজ হয়নি। অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দুটিকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।’

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে বিবৃতি দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এর আগে সংবাদমাধ্যম ফিলিপাইন স্টার এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করে, যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংকে রাখা বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের অর্থ উদ্ধারে করা মামলা খারিজ করে দিয়েছে নিউ ইয়র্কের সুপ্রিম কোর্ট।

রিজার্ভের অর্থ চুরির বিষয়ে ২০১৬ সালে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশকারী ফিলিপাইনের সংবাদমাধ্যম ডেইলি ইনকোয়ারার এ বিষয়ে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, রিজার্ভ চুরির বিষয়ে ‘প্রয়োজনীয় এখতিয়ারের অভাবে’ চুরি যাওয়া অর্থের বড় একটি অংশ উদ্ধারে ২০২০ সালে করা এ মামলা খারিজ করা হয়।

রিজল ব্যাংক থেকে অর্থ তুলে একটি ক্যাসিনোতে নিয়ে যাওয়ার খবর প্রকাশের পর সেই ক্যাসিনো মালিকের কাছ থেকে দেড় কোটি ডলার উদ্ধার করে বাংলাদেশ সরকারকে বুঝিয়েও দেয় ফিলিপাইন। বাকি অর্থ উদ্ধারে ফের আইনি প্রক্রিয়ায় যায় বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
রিজার্ভ চুরি: ৪৯তম বার পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন
রিজার্ভ চুরি, ৪৭ বারেও জমা পড়ল না প্রতিবেদন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
90 percent of the tax comes from Dhaka and Chittagong

করের ৯০ শতাংশই আসে ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে

করের ৯০ শতাংশই আসে ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে শনিবার গুলশান ক্লাবে ‘শতবর্ষে আয়কর আইন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
‘ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাইরে অনেক জেলা শহরে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বেড়েছে। ফলে কর আহরণের সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ওই সব জেলার সামর্থ্যবানদের কর-জালে আনতে হবে। এ জন্য এনবিআরের সক্ষমতা ও জনবল বাড়াতে হবে।’

দেশে বছরে যে পরিমাণ আয়কর আদায় হয় তার ৯০ শতাংশই আসে ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে। অবশিষ্ট ১০ শতাংশ সংগৃহীত হয় অন্যান্য জেলা থেকে।

শনিবার রাজধানীর গুলশান ক্লাবে ‘শতবর্ষের আয়কর আইন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক সেমিনারে মূল প্রবন্ধে এ তথ্য জানিয়েছেন স্নেহাশীর্ষ বড়ুয়া এফসিএ।

ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ-আইবিএফবি এই সেমিনারের আয়োজন করে।

তথ্য অনুযায়ী, সংগৃহীত আয়করের ৭৪ শতাংশই আদায় হয় রাজধানী ঢাকা থেকে। আর ১৬ শতাংশ আসে বন্দর নগরী চট্টগ্রাম থেকে। বাকি অংশ আহরণ হয় সারা দেশ থেকে।

স্নেহাশীষ বড়ুয়া বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রামের বাইরে অনেক জেলা শহরে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বেড়েছে। ফলে কর আহরণের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। আওতা বাড়াতে হলে ওই সব জেলার সামর্থ্যবানদের কর-জালে আনতে হবে। এ জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সক্ষমতা ও জনবল বাড়াতে হবে।

গত অর্থবছরে এনবিআরের মাধ্যমে আয়কর, মূল্য সংযোজন কর-ভ্যাট ও আমদানি শুল্ক মিলে মোট রাজস্ব আহরণ হয় ২ লাখ ৬১ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে আয়করের অংশ ১ লাখ ৪ হাজার কোটি টাকা। এর ৯০ শতাংশ অর্থাৎ ৯৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা আদায় হয় ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে।

বর্তমানে আয়করের অংশ মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপির মাত্র ২ দশমিক ৫ শতাংশ।

স্নেহাশীষ বড়ুয়া মনে করেন, উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশে যেতে হলে করের পরিমাণ জিডিপির ৮ থেকে ৯ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। ফলে আগামী দিনে আয়কর আহরণ বৃদ্ধি হবে বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ ।

অনুষ্ঠানে এনবিআরের সাবেক সদস্য আলমগীর হোসেন বলেন, বর্তমানে ৮৬ উপজেলায় আয়কর অফিস আছে। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড বাড়লেও জনবলের অভাবে তৃণমূল পর্যায়ে সামর্থ্যবানদের করনেটে আনা যাচ্ছে না। আওতা বাড়াতে হলে মাঠপর্যায়ে কর বিভাগের সম্প্রসারণ জরুরি।

এনবিআর সূত্রে জানা যায়, দেশে এখন পর্যন্ত টিআইএনধারীর সংখ্যা প্রায় ৮০ লাখ। এর মধ্যে গত করবর্ষে আয়কর রিটার্ন জমা পড়েছে ২৫ লাখ। অর্থাৎ নিবন্ধিত করদাতার ৬৫ শতাংশই রিটার্ন জমা দেননি।

অনুষ্ঠানে আইবিএফবির সভাপতি হুমায়ন রশিদ জানান, প্রায় তিন কোটি জনসংখ্যার দেশ নেপালে আয়কর রিটার্ন জমা দেয় ২২ লাখ লোক। আর ১৭ কোটি জনসংখ্যার বাংলাদেশে জমা পড়ে ২৩ লাখ।

আয়কর আদায় ব্যবস্থা কেন্দ্রীভূত হওয়ার পেছনে প্রধানত দুটি কারণের কথা বলেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের জ্যেষ্ঠ গবেষণা পরিচালক ড. খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড মূলত ঢাকা ও চট্টগ্রামের ওপর নির্ভরশীল। দ্বিতীয়ত, কর আদায় বাড়ানোর জন্য এনবিআরের যে ধরনের কাঠামো বিস্তৃত করা দরকার সেভাবে করা হয়নি।

জ্যেষ্ঠ এই গবেষক আরও বলেন, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বাদ দিয়ে অন্যান্য জেলা শহরে কর আহরণের যথেষ্ট সম্ভাবনা থাকলেও তা আদায় করতে পারছে না এনবিআর। সব জেলা শহরে বড় বড় ব্যবসায়ী আছেন, অনেক পেশাজীবী আছেন, যাদের আয় অনেক। এদের অনেকেই এখনও করনেটের বাইরে। শুধু তা-ই নয়, উপজেলা পর্যায়েও কর আহরণের সম্ভাবনা রয়েছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সামর্থ্যবানদের সবাইকে নেটে আনতে পারলে কর আদায়ের পরিমাণ আরও বাড়বে।

আরও পড়ুন:
সম্ভাবনার প্রযুক্তি খাতে নানা সমস্যা, সমাধানের তাগিদ
বড় বিনিয়োগের সুযোগ করে দিয়েছে পদ্মা সেতু: প্যাট্রিক
বড় প্রকল্পে হংকংয়ের বিনিয়োগ চায় সরকার
‘প্রাসাদ বানালেন অথচ ভিতরে নড়বড়ে, লাভ নেই’
‘অর্থনীতিতে অবিচারের বাস্তবতা তৈরি হয়েছে’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Power crisis will end gas crisis BGMEA

বিদ্যুতের সমস্যা শেষ, গ্যাস সংকটও কেটে যাবে: বিজিএমইএ

বিদ্যুতের সমস্যা শেষ, গ্যাস সংকটও কেটে যাবে: বিজিএমইএ
সংবাদ সম্মেলনে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্রুনাই থেকে গ্যাস আমদানি করবে। এ গ্যাস আসা শুরু হলেই পোশাক কারখানায় জ্বালানির সমস্যা দূর হবে।’

পোশাক শিল্পে বিদ্যুতের যে সমস্যা ছিল, তা প্রায় কেটে গেছে বলে মন্তব্য করেছেন পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান। তিনি বলেন, ‘বিদ্যুতের সমস্যা সমাধান হয়েছে, আশা করছি শিগগিরই গ্যাস সংকটও নিরসন হবে।’

শনিবার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ উইক’ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

ফারুক হাসান বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্রুনাই থেকে গ্যাস আমদানি করবে। এ গ্যাস আসা শুরু হলেই পোশাক কারখানায় জ্বালানির সমস্যা দূর হবে।’

তিনি বলেন, ‘পোশাক কারখানায় সাম্প্রতিক যে বিদ্যুৎ-গ্যাসের সমস্যা তৈরি হয়েছিল, তার সমাধান হয়েছে। কারখানায় উৎপাদন অব্যাহত আছে। আমাদের ঢাকা-চট্টগ্রাম-ঢাকা রুটে পণ্য রপ্তানিতে যে সমস্যা হয়েছিল, তার সমাধান হয়েছে। ঢাকা বিমানবন্দরে স্ক্যানিং মেশিন জটিলতায় পড়তে হয়েছিল একটা সময়। এখন চারটি স্ক্যানার মেশিন বসানো হয়েছে। বলতে পারি রপ্তানির ক্ষেত্রে ঢাকা বিমানবন্দরেও আর কোনো জটিলতা নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে ১৮ পৃষ্ঠার লিখিত বক্তব্যে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান সপ্তাহব্যাপী ‘মেড ইন বাংলাদেশ উইকের’ উল্লেখযোগ্য বিষয়গুলোর বিস্তারিত তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, ‘বিজিএমইএ-এর ইতিহাসে প্রথমবারের মতো সাত দিনব্যাপী মেগা ইভেন্ট “মেইড ইন বাংলাদেশ উইক” গত ১২ থেকে ১৮ নভেম্বর উদযাপন করেছি। এই ইভেন্টের থিম ছিল “কেয়ার ফর ফ্যাশন”। এই ইভেন্টের বিভিন্ন দিক আপনাদেরকে অবহিত করতেই আজকের এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন।’

বিদ্যুতের সমস্যা শেষ, গ্যাস সংকটও কেটে যাবে: বিজিএমইএ
হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শনিবার সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান। ছবি: নিউজবাংলা

ফারুক হাসান বলেন, ‘সপ্তাহব্যাপী এই আয়োজনে সামিট, এক্সপোজিশন, ফটো এক্সিবিশন, কনফারেন্স, ফ্যাশন ইনোভেশন রানওয়ে শো, সাসটেইনেবল ডিজাইন এবং ইনোভেশন অ্যাওয়ার্ড, ফ্যাশন ফটোগ্রাফি অ্যাওয়ার্ড, ফ্যাক্টরি ট্যুর, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং নেটওয়ার্কিং ডিনারসহ মোট ১৭টি কর্মসূচি ছিল।

‘মেড ইন বাংলাদেশ উইক আয়োজনের তিনটি প্রধান উদ্দেশ্য ছিল। প্রথমত, পোশাক শিল্প এবং সামগ্রিকভাবে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করা; বিশেষ করে শিল্পের যে প্রকৃত রূপান্তর ঘটেছে, তা বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরার মাধ্যমে এ শিল্পের ব্র্যান্ডিং করা।

‘দ্বিতীয়ত, রূপকল্প ২০৩০ বাস্তবায়নের জন্য প্রধান কৌশলগত লক্ষ্যগুলো চিহ্নিত করে শিল্পের জন্য একটি টেকসই রোডম্যাপ তৈরিতে শিল্পের সব অংশীজনকে সম্পৃক্ত করে এ ব্যাপারে তাদের মতামত নেওয়া।

‘তৃতীয়ত. সরকার, ব্র্যান্ড-ক্রেতা, বিভিন্ন সাপ্লায়ার (টেকনোলজি, মেশিন, এক্সেসরিজ সরবরাহকারী), শিল্প সংশ্লিষ্ট সবার সঙ্গে নেটওয়ার্কিং করা।’

আরও পড়ুন:
পোশাক রপ্তানি ২০ শতাংশ কমার শঙ্কায় বিজিএমইএ
ইয়াংওয়ানকে বাংলাদেশে আরও বিনিয়োগের আহ্বান
সামনে তৈরি পোশাক শিল্পের বড় চ্যালেঞ্জ: বিজিএমইএ
আন্তর্জাতিক দরে ডিজেল চান পোশাক শিল্পমালিকরা
বিজিএমইএ-এর নতুন লোগো

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Planning Minister wants reform in all areas not only income tax

শুধু আয়কর নয়, সব ক্ষেত্রে সংস্কার চান পরিকল্পনামন্ত্রী

শুধু আয়কর নয়, সব ক্ষেত্রে সংস্কার চান পরিকল্পনামন্ত্রী পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ফাইল ছবি
পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘সংস্কার সবখানে হওয়া দরকার। সবচেয়ে বেশি সংস্কার দরকার আয়করে। এ জন্য আমি সব সময় সংলাপের পক্ষে। যত বেশি আলোচনা হবে, সংস্কার প্রক্রিয়ায় জনগণের অংশগ্রহণ তত বাড়বে।’

কাঙ্ক্ষিত উন্নয়নের জন্য অনেক সংস্কার করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।

তিনি বলেন, ‘শুধু আয়কর নয়, সিভিল সার্ভিসসহ সব ক্ষেত্রে আমাদের সংস্কার করতে হবে, তবে বিদ্যমান আইনকানুন মেনে সংবিধানের আলোকে এটি করতে হবে।’

শনিবার রাজধানীর গুলশান ক্লাবে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি) আয়োজিত ‘শতবর্ষে আয়কর আইন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন পরিকল্পনামন্ত্রী।

আইবিএফবির সভাপতি হুমায়ন রশিদের সভাপতিত্বে এই সেমিনারে বক্তব্য দেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল হাসান আরিফ, এনবিআরের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আবদুল মজিদ, আইএফবির সহসভাপতি এম এ সিদ্দীক, এনবিআরের সাবেক সদস্য আলমগীর হোসেন প্রমুখ।

এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্নেহাশীষ বড়ুয়া এফসিএ।

সংস্কারকে বর্তমান সরকার সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছে জানিয়ে এম এ মান্নান বলেন, ‘আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তরিকভাবে চান সংস্কার করা হোক, কিন্তু একটি স্বার্থান্বেষী মহল সংস্কার চায় না। তারা বাধা দেয়ার চেষ্টা করছে। এদের বিরুদ্ধে আমাদের সবাইকে রুখে দাঁড়াতে হবে।’

পরিকল্পনামন্ত্রী আরও বলেন, ‘সংস্কার সবখানে হওয়া দরকার, তবে আমি মনে করি, সবচেয়ে বেশি সংস্কার দরকার আয়করে। রাজস্ব বাড়ানোর স্বার্থেই এটা করা জরুরি।

‘এ জন্য আমি সব সময় সংলাপের পক্ষে। কারণ যত বেশি আলোচনা হবে, সংস্কার প্রক্রিয়ায় জনগণের অংশগ্রহণ তত বাড়বে। এ জন্য সংস্কার হতে হবে সংলাপের মাধ্যমে সকলের পরামর্শ নিয়ে।’

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘এটা ঠিক, আমাদের দেশে কর অব্যাহতি বেশি। সবাইকে যে যৌক্তিকভাবে সুবিধা দেয়া হয়, তা ঠিক না। একজন গরিব রিকশাচালক মূল্য সংযোজন কর-ভ্যাট দিয়ে দেশের উন্নয়নে অবদান রাখছেন। তাহলে যাদের বেশি সম্পদ আছে, তারা কেন অব্যাহতি পাবে?’

অনুষ্ঠানে একজন আলোচকের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, ‘যে কর্মকর্তা ভূগোল বিষয়ে লেখাপড়া করেছেন, চাকরি জীবনে তিনি হয়তো কাজ করছেন ট্যাক্স বিভাগে। এটা সত্যি, তিনি তো ভালো নীতি প্রণয়ন করতে পারবেন না। এ জন্য সিভিল সার্ভিসে সংস্কার দরকার।’

মন্ত্রী বলেন, ‘অনেকে জিজ্ঞেস করেন কেন কর দেব? তাদের উদ্দেশে বলতে চাই, রাষ্ট্রের মালিক জনগণ। আমাদের সংবিধানে বলা আছে, রাষ্ট্রের স্বার্থে জনগণ কর দিতে; বিনিময়ে রাষ্ট্র সেবা দেবে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, সরকার কি সব সেবা নিশ্চিত করতে পারছে?

‘স্বীকার করছি এখানে সরকারের ঘাটতি আছে। সেবার মান বাড়াতে বর্তমান সরকার সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। সবাই যদি একই প্রশ্ন করে, তাহলে উন্নয়ন থেমে যাবে। সুতরাং দেশের উন্নয়নে সামর্থ্যবান সবাইকে কর দিতে হবে।’

কর দেয়া নৈতিক দায়িত্ব উল্লেখ করে এম এ মান্নান বলেন, ‘একসময় রাজাকে খাজনা দিত জনগণ। তখন রাজাকে খাজনা বা কর দেয়া দায়িত্ব ছিল। এখন সরকারকে কর দেয়া দায়িত্ব।’

আরও পড়ুন:
মন্দের ভালো হিসেবে আ.লীগার হয়েছি: মান্নান
‘মাঝেমধ্যে টানাপোড়েন হলেও বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে বন্ধন অটুট’
‘আমরা একটু অসুবিধার মাঝে আছি, টাকার ঘাটতি পড়ি গেছে’
দ্বিতীয় পদ্মা সেতুর কাজ শিগগির: পরিকল্পনামন্ত্রী
পাচারের অর্থ ফিরিয়ে আনার বৈধতা ‘মন্দের ভালো’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Salman hopes that the dollar crisis in the bank will end in January

জানুয়ারিতে ব্যাংকে ডলার সংকট কাটবে, আশা সালমানের

জানুয়ারিতে ব্যাংকে ডলার সংকট কাটবে, আশা সালমানের মেহেরপুরের মুজিবনগরে শনিবার দেশের শীর্ষস্থানীয় বাণিজ্যিক ব্যাংক আইএফআইসির এক হাজারতম সামাজিক উপশাখার উদ্বোধন করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন সালমান এফ রহমান। ছবি: নিউজবাংলা
ডলার সংকট নিয়ে প্রশ্নের জবাবে সালমান এফ রহমান বলেন, ‘আগামী জানুয়ারি মাস থেকে ব‍্যাংকগুলোতে ডলারের সংকট কেটে যাবে ইনশাল্লাহ। তা ছাড়া আগামী রমজান মাসকে কেন্দ্র করে যে জিনিসপত্রগুলো আমদানি করা দরকার, তা করা হবে।’

আগামী বছরের জানুয়ারি থেকে ব‍্যাংকগুলোতে ডলার সংকট কেটে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান।

মেহেরপুরের মুজিবনগরে শনিবার দেশের শীর্ষস্থানীয় বাণিজ্যিক ব্যাংক আইএফআইসির এক হাজারতম সামাজিক উপশাখার উদ্বোধন করতে এসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

সকাল ১০টার দিকে মুজিবনগরে পৌঁছে মু্ক্তিযুদ্ধের স্মৃতিবিজড়িত স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন প্রধানমন্ত্রীর এই উপদেষ্টা।

ওই সময় ডলার সংকট নিয়ে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আগামী জানুয়ারি মাস থেকে ব‍্যাংকগুলোতে ডলারের সংকট কেটে যাবে ইনশাল্লাহ। তা ছাড়া আগামী রমজান মাসকে কেন্দ্র করে যে জিনিসপত্রগুলো আমদানি করা দরকার, তা করা হবে। তাই আগামী রমজান মাসে কোনো সমস্যা হবে না ইনশাআল্লাহ এবং আপনারা জানেন, আন্তর্জাতিক বাজারে সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় আমরা যখন বিদেশ থেকে কোনো কিছু আমদানি করছি, তখন তার ওপর এর এফেক্ট পড়ছে।

‘তারপরও সরকার যেটা করছে, তা হলো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা এক কোটি পরিবারকে টিসিবি কার্ডের মাধ‍্যমে নিত‍্যপ্রয়োজনীয় পণ‍্য বিতরণ করছে। এক কোটি পরিবার মানে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি থেকে ৫ কোটি মানুষ। ১৬ কোটি মানুষের মধ‍্যে আমরা যদি ডিরেক্ট এ সাহায্যটা পৌঁছে দিতে পারি, ইনশাল্লাহ দেশে কোনো সমস‍্যা থাকবে না। আমি আবারও বলছি ব‍্যাংকগুলোতে জানুয়ারি মাস থেকে ডলারের সংকট কেটে যাবে ইনশাল্লাহ।’

গত বছরের আগস্ট থেকে দেশে আমদানি ব্যয় বাড়তে থাকে। দেখা দিতে থাকে ডলারের সংকট, বাড়তে থাকে দর। শক্তিশালী হতে থাকে ডলার, দুর্বল হতে থাকে টাকা।

এতদিন বাংলাদেশ ব্যাংক বৈদেশিক মুদ্রার সঞ্চয়ন বা রিজার্ভ থেকে বেসরকারি ব্যাংকগুলোকে ডলারের জোগান দিলেও পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে তারাও হাত গুটিয়ে নিয়েছে। ব্যাংকগুলোকে এখন নিজেদের ডলার দিয়ে চলতে হচ্ছে, কিন্তু প্রবাসী আয় ও রপ্তানিতে টান পড়ায় সেই সক্ষমতাও হারাতে বসেছে তারা।

আরও পড়ুন:
৪ মাসেই ৫ বিলিয়ন বিক্রি, তারপরও ডলার নেই ব্যাংকে
উচ্চ আয়ের প্রবাসীরাও পাবেন ডলারপ্রতি ১০৭ টাকা
রিজার্ভ থেকে ডলার পাবে না বেসরকারি ব্যাংকগুলো
ডলার প্রিমিয়াম ও ইনভেস্টমেন্ট বন্ডে বিনিয়োগে এনআইডি লাগবে না
ডলার দর: রেমিট্যান্সে কমল, রপ্তানিতে বাড়ল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BSEC continues to try and wait for the war to end

চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা

চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বিএসইসি, যুদ্ধ শেষের অপেক্ষা বিএসইসির কমিশন সভা। ছবি: নিউজবাংলা
২০২০ সালের মে মাসে বিএসইসির দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা আগে নেয়া হয়নি, তবে ইউক্রেন যুদ্ধে বিশ্ব অর্থনীতির টালমাটাল পরিস্থিতিতে বাংলাদেশে পুঁজিবাজার ক্রমেই গতিহীন হয়ে পড়েছে। অথচ যেসব পরিবর্তন গত দুই বছরে হয়েছে, তাতে পুঁজিবাজার আরও গতিশীল হওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্ব অর্থনীতির টানাপোড়েনের মধ্যে বাংলাদেশে পুঁজিবাজারের পরিস্থিতি বেশ হতাশাজনক, তবে ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত টানা উত্থান বিনিয়োগকারীদের বেশ আশাবাদী করেছিল।

এরপর নানা ইস্যুতে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এবং আর্থিক খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের মধ্যে মতভিন্নতার প্রভাবে টানা কয়েক মাস সংশোধন শেষে নতুন বছরে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা চলে। সেটি প্রথমে ধাক্কা খায় শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ে। এরপর ফেব্রুয়ারির শেষে ইউক্রেনে রুশ হামলা, পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা আর বিশ্ব অর্থনীতিতে নামে বিপর্যয়।

এমনিতেই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর অভাবে ভুগতে থাকে দেশের পুঁজিবাজার। ব্যক্তি-শ্রেণির যে বিনিয়োগকারীরা আছেন, তারা বিনিয়োগের মূলতত্ত্বের বাইরে গিয়ে গুজব, গুঞ্জনে কান দেন বেশি। নানা সময় দেখা যায়, তারা গুজবে শেয়ার কেনেন; আতঙ্কে বেচেন। অথচ পরিস্থিতি এমনটা হওয়ার কথা ছিল না।

২০২০ সালের মে মাসে বিএসইসির দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলামের নেতৃত্বে যেসব পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে, তা আগে নেয়া হয়নি। বন্ধ হয়ে যাওয়া বেশ কিছু কোম্পানিতে প্রাণ ফিরেছে কমিশনের উদ্যোগে।

কয়েকটি কোম্পানিতে উৎপাদন শুরু হয়েছে। কিছু কোম্পানি পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করেছে। ২০০৯ সালে ওভার দ্য কাউন্টার বা ওটিসিতে পাঠিয়ে দেয়া কয়েকটি কোম্পানি ‍মুনাফায় ফেরার পর পুঁজিবাজারেও ফিরেছে।

যেসব কোম্পানি টাকা তুলে হাওয়া হয়ে গিয়েছিল, সেগুলোকে ডি লিস্টিংয়ের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এতে তারা বিনিয়োগকারীদের তাদের টাকা ফিরিয়ে দেবে।

বেশ কিছু আইন-কানুন, বিধিবিধান সংস্কার করা হয়েছে, যাতে বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ সংরক্ষণ হয়। কোম্পানিগুলোকে বোনাস লভ্যাংশের বদলে নগদ লভ্যাংশ দিতে অনুপ্রাণিত করা হচ্ছে।

সংকটের মধ্যে শেয়ারের সর্বনিম্ন দর বেঁধে দিয়ে পুঁজির সুরক্ষা দেয়া হচ্ছে, যে অস্ত্র এখন পর্যন্ত দুবার প্রয়োগ করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বাজারে কারসাজির কারণে নিয়মিত শাস্তির ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

এ কমিশনের চেষ্টা ও বারবার আলোচনার পর বিনিয়োগকারীদের এক যুগের একটি দাবিও পূরণ হয়েছে। ব্যাংকের বিনিয়োগসীমার গণনা শেয়ারের বাজারমূল্যের বদলে ক্রয়মূল্যে নির্ধারণের কারণে ব্যাংকের দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি হয়েছে।

মিউচুয়াল ফান্ডগুলোকে শৃঙ্খলায় আনতে কমিশনের উদ্যোগ দৃশ্যমান। ফান্ডগুলো নগদে গত দুই বছর দারুণ লভ্যাংশ দিয়েছে। ইউনিটদরের তুলনায় তাদের লভ্যাংশ যেকোনো সঞ্চয়ী আমানতের চেয়ে বেশি।

বন্ড মার্কেট উন্নয়নেও কমিশনের ভূমিকা রয়েছে। ইসলামী গ্রিন সুকুকের পাশাপাশি সরকারি ট্রেজারি বন্ডেরও লেনদেন শুরু হয়েছে, যা বিনিয়োগকারীকে নির্দিষ্ট অঙ্কের নগদ লভ্যাংশ নিশ্চিত করবে।

সবার জন্য আইপিও শেয়ার নিশ্চিত করাও কমিশনের উল্লেখযোগ্য একটি পরিবর্তন। এর আগে লটারি করে শেয়ার বণ্টন হতো। তাতে হাতে গোনা কয়েকজন পেতেন সুবিধা।

এত সব পরিবর্তন ও চেষ্টার পরও পুঁজিবাজার তার কাঙ্ক্ষিত গতিতে ছুটতে পারছে না। ব্যক্তিশ্রেণির বিনিয়োগকারীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় তারা অল্পতেই ভীত হন। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীর হাতে বাজারের নিয়ন্ত্রণ নেই।

২০২০ সালের মে মাসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলামকে বাংলাদেশের পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থার চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ দেয় সরকার। কমিশনার হিসেবে যোগ দেন একই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, মিজানুর রহমান ও রুমানা ইসলাম। যোগ দেন সাবেক বাণিজ্যসচিব আব্দুল হালিমও।

এই কমিশন দায়িত্ব নেয়ার সময় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের বা ডিএসইর সাধারণ সূচক ছিল ৪ হাজারের নিচে। আর লেনদেন নেমে এসেছিল ১০০ কোটি টাকার নিচে।

১৫ মাসের মধ্যে সূচক বেড়ে হয় ৭ হাজার ৩০০ পয়েন্ট, লেনদেন তিন হাজার কোটি টাকাও ছাড়িয়ে যায়। এরপর ঘটে ছন্দঃপতন।

এর ওপর বিশ্ব অর্থনীতিতে টালমাটাল পরিস্থিতি, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের হাত নেই, তবে বিএসইসি চেয়ারম্যান মনে করেন, যুদ্ধ থামলেই মানুষের মনে আতঙ্ক কাটবে। তখন আবার ঊর্ধ্বমুখী ধারায় ফিরবে পুঁজিবাজার।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমরা মিসিং লিংকগুলো নিয়ে কাজ করেছি। অর্থাৎ যে জায়গাগুলোতে কাজ করা দরকার ছিল, কিন্তু করা হয়নি বা করা যাচ্ছিল না, তার সব জায়গায় হাত দিয়েছি। আশা করি ভবিষ্যতে বিনিয়োগকারীরা এর সুফল পাবে।’

তিনি বলেন, ‘রিয়েল এস্টেট সেক্টরকে সাহায্য করার জন্য আরইআইটি করতে যাচ্ছি আমরা। বিশ্বব্যাংকের দেয়া ৯ মিলিয়ন ডলার দিয়ে দেশের পুঁজিবাজারকে পামটপে নিয়ে আসার পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছি। ডিএসই ও সিএসইকে আধুনিক করার চেষ্টা করছি।’

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) পরিচালক শাকিল রিজভী বলেন, ‘বর্তমান কমিশন যত কাজ করেছে, চেষ্টা করেছে, এর আগে কেউ এত করেনি।’

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘কমিশন গণমাধ্যমে বিভিন্ন ইতিবাচক বক্তব্য প্রচার করে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গেও বহু বছরের কাঙ্ক্ষিত সমন্বয়টা তারা তৈরি করতে পেরেছেন।’

স্টক ব্রোকার অ্যাসোসিয়েশন বা ডিবিএর সভাপতি রিচার্ড ডি রোজারিও বলেন, ‘দেশের পুঁজিবাজারে কাজ শুরু করার পরপরই রিং সাইনের মতো কিছু কোম্পানিকে তারা শাস্তির আওতায় নিয়ে এসেছিল। এটা বেশ ভালো কাজ করেছিল দেশের পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরাতে।

‘এ ছাড়া কোম্পানির পরিচালকদের কমপক্ষে ২ শতাংশ ও সার্বিকভাবে ৩০ শতাংশ শেয়ার ধারণে ভালো ভূমিকা রেখেছে এই কমিশন। এটা দেশের পুঁজিবাজারে ইতিবাচক প্রভাব রেখেছে।’

এতগুলো উদ্যোগের পরও পুঁজিবাজারে কাঙ্ক্ষিত গতি নেই কেন, এমন প্রশ্নে মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ এ হাফিজ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিএসইসি অনেক আইন করেছে, আবার অনেক কিছু দ্রুত পরিবর্তনও করছে। এতে বিনিয়োগকারীরা বিভ্রান্ত হচ্ছে। যেমন প্রি ওপেনিং সেশনের কথাই বলি। একবার এটি চালু হয়, একবার বন্ধ হয়। এসব বিষয়ে বিএসইসির আরও একটি সতর্ক হওয়া উচিত।’

ফ্লোর প্রাইস নিয়ে এখন গুজব চলছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বিএসইসির সরাসরি ঘোষণা দেয়া উচিত যে আগামী তিন বা ছয় মাস আগে এই ফ্লোর উঠবে না। গুজব ঠেকাতে তাদের আরও সক্রিয় হওয়া উচিত।’

পাশাপাশি বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগ শিক্ষা, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বাড়ানোর বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বন্ধ কোম্পানিতে ফিরছে প্রাণ

এমারেল্ড অয়েলের কথাই ধরা যাক। ২০১৬ সালের ২৭ জুন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল কোম্পানিটি। বন্ধ হওয়ার সময় শেয়ারদর ছিল ৭০ টাকা। আর তা একপর্যায়ে নেমে আসে ৮ টাকায়।

আর কখনও পুঁজি ফিরে পাওয়া যাবে না, এমন শঙ্কার মধ্যে থাকা কোম্পানিটির বোর্ড পুনর্গঠন করার পর বদল হয় মালিকানা। ঘুরতে শুরু করে বন্ধ চাকা। দেশের বাজারে তেল বিপণন শুরুর পাশাপাশি জাপানে রপ্তানির স্বপ্নও ডানা মেলছে। বেশ কিছু মানুষের চাকরিও হয়েছে কোম্পানিতে। সরকার পাচ্ছে কর।

মৃত কোম্পানি আলহাজ টেক্সটাইল, সিঅ্যান্ডএ টেক্সটাইল, ফ্যামিলি টেক্সটাইলেও উৎপাদন ফেরানো হয়েছে একই প্রক্রিয়ায়। এমনকি ইউনাইটেড এয়ারকেও আবার আকাশে তোলার চেষ্টা হচ্ছে।

বর্তমান কমিশন দায়িত্ব গ্রহণের পর ২৮টি কোম্পানির বোর্ড পুনর্গঠন করেছে, যার মধ্যে ২০টি কোম্পানি বর্তমানে তাদের কাজ চালু করেছে।

এক্সপোজার লিমিটের সংজ্ঞা পরিবর্তন

ব্যাংকের বিনিয়োগসীমা শেয়ারের বাজারমূল্য নির্ধারণের কারণে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগ বাধাগ্রস্ত হচ্ছিল। এক যুগ ধরে দেনদরবার করেও শেয়ারের ক্রয়মূল্যে এক্সপোজার লিমিট গণনা করতে রাজি করা যাচ্ছিল না কেন্দ্রীয় ব্যাংককে, তবে গত আগস্টে কেন্দ্রীয় ব্যাংক একটি কৌশলী সিদ্ধান্ত নেয়।এতে বলা হয়, শেয়ারের ক্রয়মূল্যই বাজারমূল্য হিসেবে বিবেচিত হবে।

ফলে এখন ব্যাংকের কেনা শেয়ারের দর বেড়ে দ্বিগুণ বা তার চেয়ে বেশি বেড়ে গেলেও এক্সপোজার লিমিট অতিক্রম করে গেছে বলে শেয়ার বিক্রি করে দিতে হবে না। এটি পুঁজিবাজারে দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের সুযোগ তৈরি করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংককে এই পরিবর্তনে রাজি করতে বিএসইসি সংস্থাটির সঙ্গে একাধিকবার বৈঠক করেছে, অর্থ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও বারবার দেখা করেছেন বিএসইসি চেয়ারম্যান।

কমিশনের সবচেয়ে বড় একটি সাফল্য ছিল বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে সমন্বয় বাড়ানো। ফলে বেশ কিছু সুবিধা পেয়েছে দেশের পুঁজিবাজার। একটি সত্যকে প্রতিষ্ঠা করা গেছে যে ব্যাংক করবে কম সময়ের জন্য আর পুঁজিবাজার করবে দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন।

বন্ড মার্কেটের বিকাশ শুরু

অনেক দিন ধরে বলা হচ্ছিল বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা কম। দেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা বাড়াতে খুব বাস্তবমুখী কিছু সিদ্ধান্ত নেয় এই কমিশন।

নতুন কমিশন আসার পর থেকে প্রচুর বন্ডের অনুমোদন দেয়া হয়। আর সেসব বন্ড দেশের অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ডে লেনদেনের শর্ত জুড়ে দেয়া হয়েছে। এই নিয়ম না হলে এ ধরনের বন্ডের নাগাল বিনিয়োগকারীরা পেতেন না।

সরকারি সিকিউরিটি লেনদেন চালু করেছে নতুন কমিশন। এর ফলে এক দিনেই বাজার মূলধন বেড়েছে আড়ই লাখ কোটি টাকা। ফলে দেশের পুঁজিবাজারের গভীরতা বেড়েছে।

শুধু শেয়ার দিয়ে বাজার বড় করা যাবে না- এই মন্ত্র মেনে বন্ডের পাশাপাশি কমডিটি স্টক এক্সচেঞ্জ স্থাপানের উদ্যোগ নিয়েছে বিএসইসি। এর মধ্যে বসুন্ধরাকে পার্টনার হিসেবে পেয়েছে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জ বা সিএসই)। সামনে বাংলাদেশে কমোডিটি স্টক এক্সচেঞ্জ আনছে তারা।

সবার জন্য শেয়ার

আইপিও থেকে লটারিব্যবস্থা তুলে দেয়া একটি বিরাট পরিবর্তন। লটারি থাকার সময় লাখো বিও হিসাব শুধু আইপিও করার জন্য ব্যবহৃত হতো। দেখা যেত পাওয়া যায় না বলে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা আবেদন করাই ছেড়ে দেয়।

আর আইপিও শিকারিরা নিয়মবহির্ভূতভাবে ১০০টি বা তার বেশি অ্যাকাউন্ট রাখতেন। লটারিতে শেয়ার পেয়ে লাভে বিক্রি করে দিয়ে দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা বের করে নিয়ে যেতেন।

নতুন নিয়মে পুঁজিবাজারে আইপিতে শেয়ার পেতে হলে বিনিয়োগ থাকতে হবে সেকেন্ডারি মার্কেটে। প্রকৃত বিনিয়োগকারীরা এখন শেয়ার পাচ্ছেন।

ভালো কোম্পানি বাড়ানোর চেষ্টা হিসেবে তালিকাভুক্তির বাইরে থাকা বিমা ও ব্যাংকগুলোকে আনতে কাজ করেছে নতুন কমিশন। এর মধ্যে বেশে কয়েকটি কোম্পানিকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

বাজারে আনা হয়েছে বহুজাতিক কোম্পানি রবিকে। বাংলালিংককে তালিকাভুক্তির চেষ্টাও চলছে।

ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসাগুলোকে টাকা দেয়ার জন্য এসএমই মার্কেট চালু করেছে নতুন কমিশন। আর তালিকার বাইরে থাকা কোম্পানিগুলোর শেয়ার লেনদেনের জন্য অল্প কিছুদিনের মধ্যে চালু হবে অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড বা এটিবি।

আইপিও অনুমোদনে সাবধানতা

গত কমিশনের সময় এক বড় অভিযোগ ছিল খারাপ কোম্পানি মিথ্যা তথ্য দিয়ে দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা তুলে নিয়ে যাচ্ছে।

নতুন কমিশন বেশ গুরুত্ব দিয়ে এই ফুটো বন্ধ করার কাজে হাত দেয়। প্রথম আগের কমিশনের সময় আবেদন করা প্রায় ৮ থেকে ১০টি কোম্পানির আবেদন বাতিল করে দেয়া হয়।

তবে শুধু আইপিও বাতিল করেই বসে থাকেননি। যেসব ভালো কোম্পানি দেশের পুঁজিবাজার থেকে টাকা নিতে চায় তাদের রাস্তা সহজ করতে অনেকগুলো অভ্যন্তরীণ উদ্যোগ নিয়েছে কমিশন।

ফিন্যানশিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিল বা এফআরসিকেও সচল করা হয়েছে যাতে কোম্পানি মিথ্যা তথ্য দিলে নীরিক্ষককে ধরা যায়।

পর পর দুই বাজেটে বর্তমান কমিশন বড় ভূমিকা রেখেছে করপোরেট কর কমিয়ে আনার জন্য। যাতে ভালো কোম্পানি বাজারে আসে।

অদাবীকৃত লভ্যাংশ দিয়ে স্ট্যাবিলাইজেশন ফান্ড

বছরের পর বছর ধরে বিনিয়োগকারীর জন্য ঘোষিত যে লভ্যাংশ বিনিয়োগ না করার কারণে অলস পড়ে ছিল, সেগুলোতে একটি ছাতার তলে আনার উদ্যোগ এরই মধ্যে দৃশ্যমান হয়েছে। অদাবিকৃত এসব ল্যভাংশ দিয়ে কয়েক শ কোটি টাকায় গঠন করা হয়েছে পুঁজিবাজার স্থিতিশীলতা তহবিল।

এরই মধ্যে এই তহবিল পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ শুরু করেছে। বাজারে যাত্রা শুরু করেছে একটি মিউচুয়াল ফান্ড।

এটা অবশ্য ঠিক যে, শুরুতে যত টাকা পাওয়া যাবে বলে ধারণা করা হয়েছিল, পাওয়া গেছে তার একাংশই। এর কারণ কোম্পানিগুলো পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে বিনিয়াগকারীদেরকে লভ্যাংশ নিয়ে যেতে বলার পর অনেক লভ্যাংশ বিতরণ করা হয়।

তবে তহবিলে আরও টাকা জমা পড়ছে এবং বিপুলসংখ্যক শেয়ারও জমা পড়বে যেগুলোও বাজারের স্থিতিশীলতায় কাজ করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কারসাজির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

পুঁজিবাজারে সূচক বৃদ্ধির সময় বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টি খতিয়ে দেখে বারবার ব্যবস্থা নিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। জরিমানা করা হয়েছে বারবার। এর মধ্যে আলোচিত বিনিয়োগকারী আবুল খায়ের হিরু ও তার সহযোগীদের ১৪ কোটি টাকার বেশি জরিমানা করা হয়েছে ১০টি কোম্পানির শেয়ারে কারসাজির প্রমাণ পেয়ে।

এই তদন্ত এখনও চলমান আছে। কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, কারসাজি করলে সাজা পেতেই হবে।

ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে শেয়ারের দাম বাড়ানো-কমানো ঠেকাতে নতুন উদ্যোগ নিয়েছে কমিশন। নির্দেশনা জারি করে ডিএসই, বিএসইসি, সিএসই বা দেশের পুঁজিবাজার সম্পর্কিত লোগো কেউ ব্যবহার করতে পারবেন না। পাশাপশি বিএসইসির একটি টিম সার্বক্ষণিক নজর রাখছে সামাজিক মাধ্যমগুলোর ওপরে।

ফ্লোর প্রাইস

এটির প্রথম প্রয়োগ অবশ্য করে আগের কমিশন। ২০২০ সালের মার্চে দেশে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব নিশ্চিত হওয়ার পর শেয়ারদরে যখন ধস নামে, তখন প্রতিটি শেয়ারের সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইস বেঁধে দেয়া হয়।

বর্তমান কমিশন দায়িত্ব নেয়ার পর বাজারে দেখা দেয় ঊর্ধ্বমুখী ধারায়। আর ধীরে ধীরে প্রত্যাহার করে নেয়া হয় ফ্লোর প্রাইস।

এবারও একই কৌশলে শেয়ারদর ধরে রাখা হয়েছে। যদিও প্রায় তিন শ কোম্পানির শেয়ার ফ্লোর প্রাইসেও লেনদেন হচ্ছে না, তারপরও যেহেতু এগুলোর দরপতন ঘটছে না, বিনিয়োগকারীদের এক ধরনের সুরক্ষা দেয়া যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
‘পুঁজিবাজার এভাবে চলতে পারে না’
শেয়ার কেনার ‘কেউ নেই’, দেড় বছরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন লেনদেন
প্রি ওপেনিংকে ফের কারসাজির সুযোগ ভাবল বিএসইসি
এসএমইতে বিনিয়োগ: বিএসইসির আবেদন শোনেনি চেম্বার আদালত
এক দিন পরই সূচকের ধপাস, ‘ক্রেতাশূন্য’ তিন শ কোম্পানি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Relief is returning to the economy based on agriculture

কৃষিতে ভর দিয়ে স্বস্তি ফিরছে অর্থনীতিতে

কৃষিতে ভর দিয়ে স্বস্তি ফিরছে অর্থনীতিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান। ছবি: নিউজবাংলা
আমাদের সার্বিক খাদ্য উৎপাদন, আমাদের যে খাদ্য পরিস্থিতি, আমাদের যে নীতি সমর্থন, আমাদের কৃষিতে যে বিনিয়োগ করা হয়েছে ও আগামীতে যে আরও বিনিয়োগ হবে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের খাদ্যসংকট নিয়ে দুর্ভাবনা করার দরকার আছে বলে আমি মনে করি না। এ কথা ঠিক, সবাই ২০২৩ সালকে মন্দার বছর বলছেন। আর সেই সময় খাদ্য পরিস্থিতি খারাপ হবে বলছেন। সেই তুলনায় বাংলাদেশের অবস্থান ভালো। এর বড় কারণ বাংলাদেশের কৃষির জন্য আমরা অনেক দিন ধরে কাজ করছি। শুধু সরকার নয়, আমাদের ব্যক্তি খাত, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সবাই কাজ করছে।

কৃষি খাতের ওপর ভর করে বাংলাদেশের অর্থনীতি স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতির দিকে যাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ড. আতিউর রহমান। তিনি বলেছেন, ‘আগামী দুটি মাস যদি আমরা সাবধানে পা ফেলি, তাহলে এরই মধ্যে আমাদের আইএমএফের টাকা আসতে শুরু করবে। বিশ্বব্যাংক, এডিবির টাকা আসতে শুরু করবে। তখন আমরা একটি স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতির দিকে যেতে শুরু করব। আমার বিশ্বাস, ২০২৩ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা এলে, বিভিন্ন দেশে সংকট দেখা দিলেও বাংলাদেশের খুব একটি সমস্যা হবে না।’

গত বৃহস্পতিবার নিউজবাংলাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে সরকারকে এই আশার কথা শুনিয়েছেন গবেষণা সংস্থা উন্নয়ন সমন্বয়ের সভাপতি আতিউর রহমান। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন নিউজবাংলার বিজনেস এডিটর আবদুর রহিম হারমাছি

আড়াই বছরের করোনা মহামারির পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ধাক্কায় কেমন চলছে বাংলাদেশের অর্থনীতি? প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলছেন, বাংলাদেশে অর্থনীতি এখনো মজবুত ভিত্তির ওপর আছে; খাদ্যসংকটের কোনো আশঙ্কা নেই। আপনার কাছে সার্বিক পরিস্থিতি কেমন মনে হচ্ছে?

আমাদের সার্বিক খাদ্য উৎপাদন, আমাদের যে খাদ্য পরিস্থিতি, আমাদের যে নীতি সমর্থন, আমাদের কৃষিতে যে বিনিয়োগ করা হয়েছে ও আগামী দিনে যে আরও বিনিয়োগ হবে। সব মিলিয়ে বাংলাদেশের খাদ্যসংকট নিয়ে দুর্ভাবনা করার দরকার আছে বলে আমি মনে করি না। এ কথা ঠিক, সবাই ২০২৩ সালকে মন্দার বছর বলছেন। আর সেই সময় খাদ্য পরিস্থিতি খারাপ হবে বলছেন। সেই তুলনায় বাংলাদেশের অবস্থান ভালো। এর বড় কারণ বাংলাদেশের কৃষির জন্য আমরা অনেক দিন ধরে কাজ করছি। শুধু সরকার নয়, আমাদের ব্যক্তি খাত, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সবাই কাজ করছে। সবাই এক দশকের বেশি সময় ধরে আমাদের অভ্যন্তরীণ অর্থনীতির ওপর জোর দিচ্ছে।

যদিও আমরা এক্সপোর্ট নিয়ে অনেক কথা বলি। রেমিট্যান্স নিয়ে অনেক কথা বলি। কিন্তু আমাদের দেশীয় অর্থনীতি সেটি কিন্তু ভোগনির্ভর। সেটি আমাদের অভ্যন্তরীণ চাহিদানির্ভর। সেখানেই আমরা অনেক বেশি জোর দিয়েছি। বঙ্গবন্ধু কৃষিতে গুরুত্ব দিতেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৃষিতে গুরুত্ব দিচ্ছেন। তিনি আমাদের সাবধান করে দিয়েছেন। মন্দা যদি চলে আসে। তখন হয়তো আমদানি করা খাদ্য আমাদের জন্য আনতে হবে। সেগুলোর তো দাম অনেক বেশি হবে। সেটি আনতে গিয়ে হয়তো চাপ পড়বে। নিজেরা যদি আমরা আমাদের নিজেদের খাদ্য উৎপাদন করতে পারি। আমাদের ভোগটা যদি আমরা সামলাতে পারি। তাহলে আমাদের বেশি ডলার খরচ করতে হবে না। সেই অর্থে কৃষি একটি ফুড সাবস্টিটিউট ইন্ডাস্ট্রি। যদি আমাদের অনেক আমদানি করতে হতো। সেই আমদানির যে মূল্য সেটি কিন্তু বর্তমান রিজার্ভের ওপর আরও চাপ তৈরি করত।

বাংলাদেশ কৃষির উন্নয়নের জন্য যে নীতিমালা গ্রহণ করেছে সেটি যথার্থ। এ জন্যই বলছি, আমি দুই-তিন দিন আগেই উত্তরবঙ্গ ভ্রমণ করে এলাম। তেঁতুলিয়ায় গিয়েছিলাম, ঠাকুরগাঁও গিয়েছিলাম। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে দেখলাম যে এবার আমন উৎপাদন বাম্পার হয়েছে। কৃষকের মুখে হাসি। কারণ তারা অনেক বেশি উৎপাদন করতে পেরেছে। এখন আমাদের জন্য যেটি চ্যালেঞ্জ, সেটি হচ্ছে বোরো। আমাদের বোরো উৎপাদন ঠিকমতো করতে হবে। সে জন্য সেচের ব্যবস্থা করতে হবে। আমরা আশা করছি, বিদ্যুৎ সব সময় থাকবে। বিদ্যুৎ পরিস্থিতি ভালো হয়েছে। ডিসেম্বরে আরও ১ হাজার ৬০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হবে। সব মিলিয়ে মনে হয় কৃষকরা সেচের বিদ্যুৎ পাবেন। আমাদের জন্য আরও একটি চ্যালেঞ্জ সেটি হচ্ছে ফার্টিলাইজার। আমরা যেন কৃষককে সময়মতো সার দিতে পারি। আমাদের খেয়াল রাখতে হবে কৃষি মন্ত্রণালয় ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় আমাদের যে সার বিতরণব্যবস্থা তার ওপর নজর রাখতে হবে। যাতে আমাদের ডিলাররা কৃষকদের সার সময়মতো দিতে পারে। এটি নিয়ে যেন কোনো রকমের সমস্যা না তৈরি হয়; সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আরেকটি জিনিস করতে হবে আমন উৎপাদনের পর। আমাদের প্রকিউরমেন্ট শুরু হবে। আমরা যেন কৃষকদের যথার্থ মূল্য দিই।

আমি যদি ৫৫ টাকা করে চাল আমদানি করি। আমার কৃষককে যদি আমি ৫০ টাকাও না দিতে পারি, তাহলে কিন্তু কৃষকের প্রতি সুবিচার হচ্ছে না। এই জায়গাটিতে আমাদের খেয়াল করতে হবে। আমাদের যে মজুত সেটি বাড়িয়ে যেতে হবে। মজুত যদি আমাদের বেশি থাকে, তাহলে আমাদের বিশ্ব সংকট হলেও আমরা সামাল দিতে পারব। গ্রাম নিয়ে আমি চিন্তিত না। খাদ্য নিয়ে যদি কিছু টানাপড়েন থেকে থাকে সেটি শহরে। শহরের যারা অনানুষ্ঠানিক খাতে কাজ করেন, তাদের আয়-রোজগার কিছুটা কমেছে। খাদ্য কিনতে তাদের অসুবিধা হচ্ছে। গ্রামে যে রকম সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি আছে, শহরে কিন্তু ততটা নেই। সুতরাং আমাদের শহরের খাদ্য নিয়ে আরও ভাবতে হবে। খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতিরও উদ্বেগজনক সূচক এখন মূল্যস্ফীতি। সরকারি হিসাবেই অক্টোবরে মূল্যস্ফীতির হার দাঁড়িয়েছে ৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। আগস্টে এই সূচক ৯ দশমিক ৫২ শতাংশে উঠেছিল। মধ্যবিত্তের দুর্ভোগ বাড়ছে। মূল্যস্ফীতি সহনীয় রাখতে সরকারের কী করা উচিত?

সরকারের জন্য খুব অসুবিধা এই কারণে যে বাংলাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক অবকাঠামো নেই। আমাদের আছে টিসিবি। টিসিবির গলিতে গলিতে দোকানপাট নেই। সুতরাং মধ্যবিত্ত চাইলেও কিনতে পারে না। এখন ডিজিটাল যুগ। এই ডিজিটাল যুগে ডিজিটালভাবে সব রকম ব্যবস্থা করা যেত। মধ্যবিত্ত যদি একটি জায়গায় অনলাইনে ঢুকতে পারে। আমার পাঁচ কেজি চাল লাগবে, সেটি সরকার সহনীয় মূল্যে সরবরাহ করবে। এটি কিন্তু করা যায়। মধ্যবিত্ত সহজেই এনআইডি ব্যবহার করবে। একজন একবারের বেশি ব্যবহার করবে না। মোবাইল ফিন্যানশিয়াল সার্ভিসের মাধ্যমে টাকাটি দিয়ে দেবে। যাদের দরকার তাদের এভাবে দেয়া যেতে পারে। এ রকম কিছু ইনোভেটিভ মেজার নেয়া যেতে পারে।

সরকারের বিভিন্ন সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির আওতায় গরিব মানুষ নানাভাবে সহায়তা পাচ্ছে। ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে এক কোটি পরিবারকে কম দামে খাদ্য দেয়া হচ্ছে। এগুলো খুবই ভালো উদ্যোগ বলে আমি মনে করি। অসহায় গরিব মানুষের খুব উপকার হচ্ছে। কিন্তু এখন আমাদের মধ্যবিত্ত-নিম্ন মধ্যবিত্তদের নিয়ে ভাবতে হবে। আড়াই বছরের করোনা মহামারি এবং যুদ্ধের কারণে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া কারও বেতনই কিন্তু বাড়েনি। বরং অনেকে চাকরি হারিয়েছেন; কম বেতন পাচ্ছেন। এই দ্রব্যমূল্যের বাজারে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে চলা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। তাই আমি মনে করি, সরকারকে এখন মধ্যবিত্ত-নিম্ন মধ্যবিত্তদের পাশে দাঁড়ানো উচিত। এতে যদি সরকারের ভর্তুকির পরিমাণ বেড়ে যায়, সেটি মেনে নিয়েই এই কাজটি করতে হবে।

সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংকের নানা পদক্ষেপে আমদানি ব্যয় অনেক কমেছে। গত মার্চে পণ্য আমদানির জন্য যেখানে সাড়ে ৯ বিলিয়ন ডলারের ঋণপত্র বা এলসি খোলা হয়েছিল, সেটি এখন অর্ধেকে নেমে এসেছে। এতে শিল্প উৎপাদন বা সামগ্রিক অর্থনীতিতে কী ধরনের প্রভাব পড়বে?

এখনই এতটা অস্বস্তির কথাটা না ভাবাই ভালো। আমরা কৃষিতে যেহেতু ভালো করছি। আমাদের দেখতে হবে আমাদের আমদানি যেন বন্ধ না হয়। আমাদের মনে রাখতে হবে, আমদানিতে আছে খাদ্য, কাঁচামাল, মূলধনি যন্ত্রপাতি- এগুলোই মোট আমদানির ৮৫ শতাংশ। আমাদের রপ্তানি বাড়বে না যদি আমদানি না বাড়ে। সুতরাং আমদানিটা কিন্তু অব্যাহত রাখতে হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক ডলার বাঁচানোর জন্য আমদানি বন্ধ করেছে। সেটির একটি সুফল আমরা পাচ্ছি। যাতে করে ছোট ছোট আমদানি যেমন গরুর জন্য ওষুধ, মুরগির জন্য খাদ্য- এগুলো যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। ব্যাংকগুলো যেন এসব ছোটখাটো আমদানিতে ডলার জোগান দিতে পারে; এলসি খুলতে পারে- সেদিকে বাংলাদেশ ব্যাংককে সহায়তা করতে হবে।

আমাদের মনে রাখতে হবে, আমাদের জন্য এখন খুবই ক্রিটিক্যাল সময়। এই সময় যাতে আমাদের জরুরি আমদানি বন্ধ না হয়, আমাদের যাতে রপ্তানি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। আমাদের এক্সপোর্ট ও রেমিট্যান্স কিন্তু আবার বাড়ছে। আরও বাড়বে আমরা আশা করি। একটি সমস্যা দেখা দিয়েছিল এক্সচেঞ্জ রেট। টাকার বিপরীতে ডলারের দাম অনেক বেড়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সেটা চেষ্টা করছে। এক্সচেঞ্জ রেট একাধিক হওয়ার কারণে কিছু সংকট দেখা দিয়েছিল, ভুল বোঝাবুঝি হচ্ছিল। এর কিছুটা উন্নতি হয়েছে। যেমন ওয়ার ট্রান্সফার এবং রেমিট্যান্সে জন্য একটি ডলার রেট হয়েছে।

কিন্তু এক্সপোর্ট এবং রেমিট্যান্সের মধ্যে পার্থক্য এখনো রয়ে গেছে। আমাদের ইন্টার ব্যাংক ফরেন এক্সচেঞ্জ মার্কেট এখন খুবই স্যালো। এটির একটি রেটেই থাকা উচিত। সেই রেট দেখে দেশের মানুষ এবং বিদেশি যারা আমাদের এখানে বিনিয়োগ করছেন তারা বুঝতে পারবেন যে টাকা এবং ডলারের রেশিওটি কত। এটি অনেক সময় বোঝা যায় না। একেকজনের ক্ষেত্রে একেক রকম থাকায় আমাদের সমস্যা হচ্ছে।

প্রাইভেট (বেসরকারি খাত) অনেক ফরেন ঋণ যারা নিয়েছেন, তারা একটু চাপের মধ্যে পড়ছেন। সেটির জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক এবং যারা এই ঋণগুলো নিয়েছে তাদের মধ্যে একটি বোঝাপড়া হওয়া উচিত। এগুলোর জন্য সময় বাড়িয়ে নেয়া যায় কি না বা এগুলোর জন্য বিদেশি অন্যান্য ব্যাংক থেকে রিফাইন্যান্স করা যায় কি না- এসব নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভাবা উচিত বলে আমি মনে করি।

কৃষিতে ভর দিয়ে স্বস্তি ফিরছে অর্থনীতিতে

ছোট ব্যাংকগুলো যারা এক্সপোর্ট বেশি করে না, রেমিট্যান্স বেশি আনে না, তারা যাতে এসেনসিয়াল পণ্য আমদানি করতে ইন্টার ব্যাংক থেকে তাদের যেটি প্রাপ্য এক টাকা বেশি দিয়ে ডলার পায়, সে ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। আর তার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক প্রতি মাসে ৫০ কোটি ডলার বরাদ্দ রাখতে পারে। এটি কিন্তু ছোট ইম্পোর্টের জন্য একটি ভালো পরিবেশ তৈরি করতে পারে। তাতে কী হবে? হয়তো দেড় বিলিয়ন ডলার বাড়তি ড্র-ডাউন হবে। তাতে কিচ্ছু আসে যায় না, মার্কেট যদি আমাদের সুস্থির থাকে, এর চার গুণ আমাদের ফিরে আসবে। ইম্পোর্ট যদি চালু থাকে আমাদের যেই পরিমাণ কর্মসংস্থান হবে। বাংলাদেশ এখন অত্যন্ত একটি শক্তিশালী অবস্থানের ওপর আছে। আমার সবার কাছে অনুরোধ থাকবে অযথা গুজব ছড়াবেন না। বরং আমরা সবাই মিলে কিছু শক্তিশালী নীতিমালা গ্রহণ করে এই যে টানাপোড়েন ফরেন এক্সচেঞ্জের, সেটি হয়তো পূরণ করতে পারব। আর আমাদের অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি যে সেটি তো অনেক শক্তিশালী। গ্রাম ভালো আছে। শহরে কিছু সামাজিক নিরাপত্তা দরকার। সরকার এরই মধ্যে এক কোটি কার্ড করেছে। তারা নানাভাবে চেষ্টা করছে। মধ্যবিত্তের জন্য যতটুকু পারা যায় চেষ্টা করতে হবে।

এখানে আরেকটি বিষয় আমি বলতে চাই, আমাদের কথাবার্তায় আমরা যাতে খুব সাবধানে কথা বলি। যাতে কোনো রকম গুজব না তৈরি হয়। এ বিষয়গুলোর ওপর সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। আগামী দুটি মাস যদি আমরা সাবধানে পা ফেলি, তাহলে আমাদের আইএমএফের টাকা যখন আসতে শুরু করবে। বিশ্বব্যাংক, এডিবির টাকা আসতে শুরু করবে। আমাদের রেমিট্যান্স বাড়তে শুরু করেছে। কৃষিতে ভর করে একটি স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতির দিকে কিন্তু আমরা যাচ্ছি। সামনের দিনগুলো আরও ভালো হবে। আমার বিশ্বাস, ২০২৩ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে মন্দা এলে, বিভিন্ন দেশে সংকট দেখা দিলেও বাংলাদেশের খুব একটি সমস্যা হবে না। কেননা আমাদের সরকারি গুদামগুলোতে ২০ লাখ টনের মতো খাদ্য মজুত আছে। বেসরকারি পর‌্যায়েও প্রচুর খাদ্য আছে। আমনটা ভালো হয়েছে। বেরোটা যদি আমরা ভালোভাবে ঘরে তুলতে পারি, তাহলে খাদ্য নিয়ে আর আমাদের কোনো চিন্তা থাকবে না। আর পেটে ভাত থাকলে অন্য সব বাধাবিপত্তি মোবাবিলা করা খুব একটা কঠিন হবে না বলে আমি মনে করি।

আপনি বলছিলেন যেসব বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বিদেশি কোনো ব্যাংক বা প্রতিষ্ঠান থেকে ঋণ নিয়েছে যারা বিপদে পড়েছে। এদের কীভাবে সহায়তা করা যেতে পারে বলে আপনি মনে করেন?

বর্তমান পরিস্থিতিতে আমি যে বিষয়টিতে সবচেয়ে বেশি জোর দিচ্ছি, সেটি হলো জরুরি আমদানি বন্ধ করা যাবে না। নতুন পদ্ধতি আমাদের তৈরি করতে হবে। বাইরে থেকে বেশি ডলার আনার উদ্যোগ আমাদের নিতে হবে। যারা বাইরে থেকে ডলারে ঋণ নিয়েছে। আর এখন ডলারের দাম বেড়ে যাওয়ার কারণে সংকটে পড়েছে। তাদের কিন্তু সাহায্য করার কথা সরকারকে চিন্তা করতে হবে। যারা সঠিক উদ্যোক্তা। তাদের উতরে নেয়ার জন্য একটি সমন্বিত উদ্যোগ নিতে হবে। কেননা এরা যদি বিপদে পড়ে, উৎপাদন কর্মকাণ্ড চালাতে না পারে, প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে যায়, তাহলে কিন্তু অর্থনীতিতে আরেক ধরনের চাপ সৃষ্টি হবে; যারা এসব প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন বা কাজ করছেন, তারা বেকার হয়ে যাবেন। তাই এ বিষয়টি এখন সরকার বা কেন্দ্রীয় ব্যাংককে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করতে হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে হুন্ডি বেড়ে গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংক বলছে, হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ পাচার হচ্ছে। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী?

হুন্ডি তখনই বাড়ে, যখনই কার্ব মার্কেটে ডলার রেটের সঙ্গে অফিশিয়াল রেটের পার্থক্য অনেক বেশি হয়। মার্কেট রেটে আমাদের এক্সচেঞ্জ রেটটি হওয়া উচিত। এক্সচেঞ্জ রেট আমরা এত দিন ফ্লোটিং ম্যানেজেমেন্ট করতাম। অর্থাৎ মার্কেট রেটের কাছাকাছি নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেছি, এখনো করছি। কিন্তু রেটের অ্যাভারেজ (গড়) করতে গিয়ে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। এটিকে ছেড়ে দেয়া উচিত। কার্ব মার্কেট ও অফিশিয়াল রেটের পার্থক্য যদি ১ বা ২ টাকার হয়, তাহলে কিন্তু মানুষ অফিশিয়াল চ্যানেলেই টাকা পাঠাবে।

যারা অফিশিয়ালি টাকা পাঠাবে তাদের জন্য একটি দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে আসা যায় কি না তা ভাবা দরকার। যেমন- এনআইডি ফিক্স করে তাদের ইনভার্সাল পেনশন স্কিমে যুক্ত করা, তাদের সন্তানদের জন্য স্কলারশিপের ব্যবস্থা করা। এ রকম লং টার্ম ইনসেনটিভ প্যাকেজের সঙ্গে রেমিট্যান্সযোদ্ধাদের যুক্ত করে দিলে দেশের স্বার্থে, পরিবারের স্বার্থে তারা অফিশিয়াল চ্যানেলে টাকা পাঠাবেন।

আরেকটি কাজ করতে হবে, আর সেটি হলো ক্যাম্পেইন করতে হবে। প্রবাসী ভাইবোনদের বলতে হবে, আপনারা যে আন-অফিশিয়াল চ্যানেলে (হুন্ডি) টাকা পাঠাচ্ছেন, এটি দিয়ে কী হয়? এই টাকা দিয়ে কেউ জঙ্গিপনা করে, অস্ত্র কেনে, সন্ত্রাস করে। তার চেয়ে টাকা অফিশিয়াল চ্যানেলে পাঠান, যেটি দিয়ে আমরা মেশিন কিনতে পারব রপ্তানির জন্য, শিশুখাদ্য কিনতে পারব। তখন তারা বুঝবেন, দেশের স্বার্থের কথা বিবেচনা করে বৈধ পথে টাকা পাঠাবেন।

আমরা এই পারে (দেশে) যেমন ওয়ার্ল্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস, এজেন্ট ব্যাংকিং ও ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিট্যান্স যেমন আমরা বাড়ি পর্যন্ত পৌঁছে দিচ্ছি, ওই পারেও অর্থাৎ উৎসেও মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস, এক্সচেঞ্জ বা ব্যাংকগুলোকে অ্যাপস খুলতে বলতে পারি। ধরুন, ওইখানে একটি ফেইক মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস আছে, যেটি তারা বলে, সেটি কিন্তু সত্যি না, ফেইক।

কিন্তু একটি রিয়েল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস যদি করতে পারে এবং তারা যদি একটি অ্যাপস তৈরি করে, যেমন অগ্রণী ব্যাংক করেছে মালয়েশিয়ায়। তাহলে মরুভূমিতে বসেই আমাদের ভাইগুলো টাকা পাঠাবেন, যেটি আমাদের ব্যাংক হয়ে আবার তার বাড়িতে কয়েক মিনিটের মধ্যেই চলে যাবে। এই রকম একটি ব্যবস্থা আমরা করতেই পারি। আমাদের রেগুলেটর ও তাদের রেগুলেটররা আলাপ করতে পারেন।

আমি যখন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ছিলাম, তখন আমরা এই ধরনের একটি এক্সপেরিমেন্ট করেছিলাম মালয়েশিয়ায়, একটি স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক ও বিকাশের সঙ্গে এক্সপেরিমেন্ট করেছিলাম। এই ধরনের এক্সপেরিমেন্ট আরও বেশি করা উচিত। তাতে মানুষ কনফিডেন্স পাবে। আনুষ্ঠানিকভাবেই আমরা টাকাগুলো আনতে সক্রিয় আছি।

মূল্যস্ফীতি কমাতে ব্যাংকঋণ ও আমানতের সুদের হার বাড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছেন কোনো কোনো অর্থনীতিবিদ। এ বিষয়ে আপনার মতামত কী?

রেট অব ইন্টারেস্ট (সুদের হার) নিয়ে উভয় দিকের কনসার্নেই সত্য। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সুদের হার বাড়ালে দেশের জন্য ভালোই হয়, তাতে অনুৎপাদনশীল খাতে খরচটা কম হয়। আবার কোনো ক্ষেত্রে, যেমন উৎপাদনশীল খাতে রেট অব ইন্টারেস্ট কম থাকলে উৎপাদন বাড়ে, বিনিয়োগ বাড়ে। সুতরাং এটি একটি ব্যালান্সিং অ্যাক্ট, এই কাজটি করতে হবে। তবে মূল্যস্ফীতির চেয়ে কম হারে যদি ডিপোজিট রেট দিই, তাহলে তো একজন মানুষের পকেট কাটা হচ্ছে, সে তো টাকা দিন দিন হারিয়ে ফেলবে।

ব্যাংক যদি সেই হারের বেশি হারে ডিপোজিট দেয়, কম হারে যদি লোন দেয়, তার ওপরে ইনকাম ট্যাক্স দিতে হয়। তাহলে তো ব্যাংকের ব্যবসা হবে না। এই রকম জিনিসগুলোতে কোনো কোনো ক্ষেত্রে ইন্টারেস্ট রেট কম দেব, সে ক্ষেত্রে তাকে ফিসক্যাল সাপোর্টে দেয়া যেতে পারে। যেমন আমি গভর্নর থাকার সময় কৃষিতে ইন্টারেস্ট রেট কম রেখেছি, খুবই কম হারে পিঁয়াজের জন্য লোন দিয়েছিলাম, সেটি কেমন করে, কারণ আমরা ৬ শতাংশ ভর্তুকি ফিসক্যাল পলিসিতে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পেয়েছিলাম।

সুতরাং কোনো কোনো জায়গায় এ রকম ইনোভেটিভ আইডিয়া করাই যেতে পারে। তবে বাকিটা বাজারের ওপর ছেড়ে দেয়া উচিত, ট্রাস্ট করা উচিত। বাজার যেভাবে আমাদের গাইড করবে, কিছুটা সামাজিক দায়বোধ থাকতে হবে, কিন্তু বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে কিছুটা ছাড় দিলেও সার্বিক ক্ষেত্রে বাজারের ধর্মমতে চলতে হবে। অনুৎপাদনশীল খাত যদি খানিকটা নিয়ন্ত্রিত হয়, তাতে ক্ষতি নেই।

কোরিয়ায় একসময় ২০ শতাংশ হারেও লোন দেয়া হতো। সেখানে প্রবৃদ্ধি কিন্তু কমেনি। সুতরাং আমি মনে করি, টাকাটা ঠিক জায়গামতো যাচ্ছে কি না, আমার রিয়েল ইকোনমি উপকৃত হচ্ছে কি না, এটি যদি হয় এবং সময়মতো মানুষ যাতে টাকা পায় সেটির ব্যবস্থা করতে হবে। ধরা যাক, কম রেটে কৃষিঋণ দেয়া হলো। কৃষক গেলেন ব্যাংকে, টাকা নেয়ার সময় তার কাছ থেকে কিছু টাকা ব্যাংকাররা রেখে দিলেন। কৃষক কিন্তু হিসাব করবেন তার রেট অব ইন্টারেস্ট বা খরচ বেশি হিসাব করবেন। সুতরাং স্বচ্ছতার খাতিরে রেট অব ইন্টারেস্ট নিয়ে বাস্তববাদী ভাবনার সুযোগ রয়েছে।

ব্যাংকে টাকা নেই বলে গুজব ছড়াচ্ছে একটি মহল। আসলে বাস্তব অবস্থা কী। সাবেক গভর্নর হিসেবে এ বিষয়ে আপনার অভিমত কী?

বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাত এখনো পুরোপুরি নিরাপদ। কয়েক দিন আগে যে গুজব উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কিছু মানুষ ছড়িয়েছিল, তা কিন্তু নেই। তাহলে তো এখনো থাকত তাই না? এটি যে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ছিল সেটি বোঝা যায়। আমাদের ব্যাংকিং সিস্টেমে টাকা রাখা, বালিশের নিচে টাকা রাখার চেয়েও বেশি নিরাপদ। আর বাংলাদেশ ব্যাংকের হাতে অনেক ইনস্ট্রুমেন্ট আছে। কোনো ব্যাংকের সত্যিই যদি লিকুইডিটি ক্রাইসিস থাকে, তাহলে সে তার রেপো ব্যবহার করতে পারে, সরকারের কোনো ইনস্ট্রুমেন্ট বা সিকিউরিটি থাকলে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে বিক্রি করতে পারে, কেন্দ্রীয় ব্যাংকও ওই ব্যাংকটিকে লং টার্ম লিকুইডিটি সাপোর্ট দিতে পারে। এখন ফরেন এক্সচেঞ্জেও বাংলাদেশ ব্যাংকের সময় এসেছে সাপোর্ট দেয়ার। দরকার হলে ওডি দেবে, সোয়াপ করবে। নানা রকম ইনস্ট্রুমেন্ট আছে, যাতে মার্কেটটিকে লিকুইড এবং স্বস্তিকর করে দেয়া যায়। এটি ফরেন এক্সচেঞ্জের জন্য ও লোকাল মার্কেটের জন্যও দরকার। আমাদের কাছে সেই ইনস্ট্রুমেন্ট আছে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একটি কথা বলেছেন, ‘টাকার অভাবটা আসল অভাব না, আসল অভাব ভরসা।’ সুতরাং আমরা ভরসার পরিবেশ করি।

অর্থনীতিতে চাপ সামাল দিতে সরকার ব্যয় সংকোচনসহ নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। আর কী কী পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে?

সরকার এখন পর্যন্ত যথার্থ পথেই এগোচ্ছে। বিশেষ করে কৃষিতে তারা যে গুরুত্বটা দিয়েছে, সেটা অত্যন্ত স্ট্র্যাটেজিক হয়েছে। এখন যেটি করতে হবে। আমাদের দরকার হলে আগামী দুই মাসের ফরেন এক্সচেঞ্জ রিজার্ভ থেকে ছেড়ে দেব, ছেড়ে দিয়ে হলেও এই জায়গাটায় স্টেবলাইজড করব। বিশেষ করে এসেনসিয়াল ইমপোর্টে যেন কোনো ব্যাংকই কোনো সমস্যা তৈরি না করে। সে জন্য দরকার হলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকে হটলাইন খুলতে হবে, কোন ব্যাংক কী সমস্যা করছে, তা জানবে এবং সঙ্গে সঙ্গে সমর্থন দিতে হবে।

পাইপলাইনে যেসব ফরেন এক্সচেঞ্জ আসার কথা সেটি ত্বরান্বিত করতে হবে। আইএমএফ, এডিবি ও বিশ্বব্যাংকের সঙ্গে যে নেগোসিয়েশন করেছি, সেগুলোর প্রথম কিস্তি তাড়াতাড়ি চলে আসবে সেই কাজটি করতে হবে। আরেকটি কথা হলো, ফরেন এক্সচেঞ্জ বা রিজার্ভের মতো স্পর্শকাতর বিষয় নিয়ে সবাই কথা বললে হবে না। কথা বলবেন সেন্ট্রাল ব্যাংক, গভর্নর বা মুখপাত্র এবং তথ্য দিয়ে ক্রেডিবল মেসেজ দেবেন, এটি সম্ভব, তাহলে সবকিছু ঠান্ডা হয়ে যাবে বলে আমার মনে হয়।

আরও পড়ুন:
প্রবৃদ্ধিতে না তাকিয়ে মূল্যস্ফীতির লাগাম টেনে ধরতে হবে
সংলাপে মতভেদও ঘুচবে, ভারত সফরের আগে শেখ হাসিনা
‘ডিজিটাল বাংলাদেশের সাফল্যে ভূমিকা রেখেছে বিদ্যুৎ’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The new law does not allow money laundering

‘নতুন আইনে টাকা সাদা করার সুযোগ নয়’

‘নতুন আইনে টাকা সাদা করার সুযোগ নয়’ কালো টাকা সাদা করার সুযোগকে অনৈতিক মনে করেন অর্থনীতির বিশ্লেষকরা। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা।
সেমিনারে বক্তারা বলেন, প্রচলিত আইনে কর্মকর্তাদের ‘ঐচ্ছিক ক্ষমতা’ অত্যধিক। সে কারণে কর ফাঁকি ও দুর্নীতির ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। এ বিধান বাতিল করে নতুন আয়কর আইন বাস্তবায়ন করতে হবে।

‘জাতীয় বাজেটে বার বার কালো টাকা সাদা করার যে সুযোগ দেয়া হয়েছে অনৈতিক। ক্রাইম বা অপরাধ কর্মকাণ্ড থেকে অর্জিত আয় অবৈধ হলেও আইন করে সেই আয়কেই বৈধতার সুযোগ দিয়েছে সরকার, যা অন্যায়।’

শনিবার রাজধানীর গুলশান ক্লাবে আয়োজিত সেমিনারে বিশেষজ্ঞ বক্তারা এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন। একইসঙ্গে তারা নতুন আয়কর আইনে সুযোগটি না রাখার দাবি জানিয়েছেন।

‘শতবর্ষে আয়কর আইন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক এই সেমিনারের আয়োজন করে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অফ বাংলাদেশ-আইবিএফবি।

নতুন আয়কর আইনটি যাতে ব্যবসা-বান্ধব ও গতিশীল হয় সে বিষয়ে গুরুত্ব দেয়ার পরামর্শ দিয়ে সেমিনারে বক্তারা বলেন, প্রচলিত আইনে কর্মকর্তাদের ‘ঐচ্ছিক ক্ষমতা’ অত্যধিক। সে কারণে কর ফাঁকি ও দুর্নীতির ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। এ বিধান বাতিল করে নতুন আয়কর আইন বাস্তবায়ন করতে হবে।

একইসঙ্গে আয়কর আহরণ আরও বাড়াতে এসএমই খাতকে বেশি কর প্রণোদনা, করদাতাদের ন্যায্যতা নিশ্চিত করতে পুনরায় ট্যাক্স ওমবুসমেন্ট বা কর ন্যায়পাল চালু, উৎসে করের হার কমানোর পরামর্শ দেন তারা।

সেমিনারে বক্তব্য দেন সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল হাছান আরেফিন, সাবেক সচিব সোহেল আহমেদ চৌধুরী, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ, এনবিআরের অবসরপ্রাপ্ত সদস্য আলমগীর হোসেন, আইবিএফবির সহ-সভাপতি অর্থনীতিবিদ এম এ সিদ্দীক, এফবিসিসিআইর পরিচালক আব্দুল হক প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন স্নেহাশীষ বড়ুয়া এফসিএ। সঞ্চালনা করেন আইবিএফবির সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান।

মূলত বিদ্যমান আয়কর আইনটি ১৯২২ সালে প্রণীত, যা পরবর্তীতে কয়েক দফা সংশোধন হয়েছে। ওই আইনের পরিবর্তে নতুন আয়কর আইন করছে সরকার।

‘নতুন আইনে টাকা সাদা করার সুযোগ নয়’
শনিবার গুলশান ক্লাবে ‘শতবর্ষে আয়কর আইন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তি’ শীর্ষক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

অনুষ্ঠানে সবার অংশগ্রহণে নতুন আয়কর আইনের খসড়া চূড়ান্ত করার পরামর্শ দেন হাছান আরেফিন।

করদাতা ও গ্রহীতার মধ্যে পারস্পরিক আস্থা অর্জনের ওপর গুরুত্বারোপ করেন মোহাম্মদ আব্দুল মজিদ।

এনবিআরের সাবেক এই চেয়ারম্যান বলেন, ‘আইনের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে কর্মকর্তাদের মানসিক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করা। কর্মকর্তাকে বুঝতে হবে যে যিনি কর দেন তিনি কষ্ট করে আয় করেন। সুতরাং এমন আচরণ করা যাবে না যাতে করদাতা অসম্মানিত হন।’

করদাতাদের সুবিধার্থে পুনরায় কর ন্যায়পাল চালু ও কর বিভাগ সংস্কারের পরামর্শ দেন তিনি।

আলমগীর হোসেন মনে করেন, দেশে কর কম আদায়ের অন্যতম কারণ হচ্ছে সচেতনতার অভাব। তিনি বলেন, ‘করদাতাদের সুবিধার জন্যই স্বনির্ধারণী পদ্ধতি চালু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে করদাতাদের ইচ্ছার প্রতিফলন হয়েছে। বেসরকারি খাত ও করদাতাদের মতামতকে প্রাধান্য দিয়ে নতুন আয়কর আইন করা হচ্ছে।’

এম এ সিদ্দীক বলেন, ‘ক্রিমিনাল বা অপরাধ কর্মকাণ্ড থেকে অর্জিত আয় অবৈধ হলেও সরকার এই আয়কে বৈধ করার সুযোগ দিয়েছে। আমরা আর কালো টাকা সাদা করার সুযোগ চাই না। কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়ে প্রকারান্তরে দুর্নীতিবাজদের উৎসাহিত করছে সরকার।’

আইবিএফবির এই সহ-সভাপতি আরও বলেন, ‘এসএমই খাত হচ্ছে দেশের অর্থনীতির প্রাণশক্তি। অথচ বিদ্যমান করনীতি এই খাতের পরিপন্থী। তিনি প্রশ্ন রাখেন, তাহলে দেশের জিডিপির প্রবৃদ্ধি হবে কীভাবে? উদ্যোক্তারা কীভাবে উৎসাহিত হবেন?’

মূল প্রবন্ধে স্নেহাশীষ বড়ুয়া বলেন, দেশে টিআইএন বাড়লেও গড় কর আদায় কমছে। এতে করে গরিবের ওপর করের চাপ বাড়ছে। অর্থনীতির জন্য এটা কোনো ভালো লক্ষণ নয়।

‘এখন মোট রাজস্ব আয়ে আয়করের অবদান ৩২ শতাংশ। সরকারের লক্ষ্য হচ্ছে এটা ৬৫ শতাংশে উন্নীত করা। ২০২৬ সালের পর বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে যাবে। এরপর আমাদের অনেক সুযোগ-সুবিধাই থাকবে না। সুতরাং চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে নিজস্ব সম্পদ তথা আয়কর আদায় বাড়াতেই হবে।’

করপোরেট কর হার পর পর তিন বছর কমানোর পরও দেখা গেছে ব্যবসায়ীদের কার্যকর কর হার বেড়েছে। এর কারণ আমাদের দেশে উৎসে কর হার বেশি। তাই পর্যায়ক্রমে এটি কমানোর প্রস্তাব করেন তিনি।

আইবিএফবির সভাপতি হুমায়ন রশিদ বলেন, ‘নেপালের জনসংখ্যা ২ কোটি ৯০ লাখ। সে দেশে আয়কর রিটার্ন জমা দেয় ২২ লাখ মানুষ। আর আমাদের ১৭ কোটি জনসংখ্যার দেশে রিটার্ন জমা দেয় ২৩ লাখ। এই পরিসংখ্যানই বলে দিচ্ছে, বাংলাদেশে কর-সংস্কৃতি খুবই দুর্বল।

আরও পড়ুন:
বড় বিনিয়োগের সুযোগ করে দিয়েছে পদ্মা সেতু: প্যাট্রিক
বড় প্রকল্পে হংকংয়ের বিনিয়োগ চায় সরকার
‘প্রাসাদ বানালেন অথচ ভিতরে নড়বড়ে, লাভ নেই’
‘অর্থনীতিতে অবিচারের বাস্তবতা তৈরি হয়েছে’
অর্থ বিল নিয়ে স্নেহাশীষ মাহমুদ অ্যান্ড কোংয়ের সেমিনার

মন্তব্য

p
উপরে