× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট বাংলা কনভার্টার নামাজের সময়সূচি আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
The question to the minister is why there is so much delay in the elevated expressway
google_news print-icon

এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়েতে এত দেরি কেন, মন্ত্রীকে প্রশ্ন

এলিভেটেড-এক্সপ্রেসওয়েতে-এত-দেরি-কেন-মন্ত্রীকে-প্রশ্ন
শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কুতুবখালী পর্যন্ত নির্মাণাধীন এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। ফাইল ছবি
‘আপনারা শুধু বলেন, ১৩ বছর ধরে আছেন। ১৩ বছর ধরে তো আমরা শুধু ধুলাবালি, এয়ারপোর্ট রোডের উপর পাঁচ বছর ধরে একটা পিলার ফেলে রেখে দিয়েছেন। কেন পিলার ফেলে রেখেছেন এতদিন ধরে। কাজটি তো প্রোপারলি করতে হবে। একটা দেশের উদাহরণ দিতে পারবেন যে একটা প্রকল্প পাঁচ বছরের শেষ করবেন? কিন্তু কন্ট্রাকটর শেষ করবে না, ইঞ্জিনিয়ার শেষ করবে না, কিন্তু তাকে উল্টা আবার টাকা দেবেন। এমন পৃথিবীর কোথায় আছে?’

যানজট নিয়ে রাজধানীতে এক সংলাপে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে তৈরিতে ধীরগতি নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

এভাবে বছরের পর বছর ধরে কাজ ফেলে রাখলে কীভাবে যানজট নিয়ন্ত্রণে আসবে- এই প্রশ্ন রাখেন নিরাপদ সড়ক নিয়ে আন্দোলনে থাকা চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন। জবাবে মন্ত্রী যানজট নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সুনির্দিষ্ট কোনো আশা না দিয়ে বলেন, সময় লাগবে।

সোমবার রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এই সংলাপের আয়োজন করে নগর সাংবাদিকদের সংগঠন ‘ঢাকা ইউটিলিটি রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন’ বা ডুরা। বিষয় ছিল: ‘অসহনীয় যানজট: সমাধান কী?’

সংলাপে মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক শামসুল হক। বক্তব্য রাখেন নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, রাজউকের ডিটেল এরিয়া প্ল্যান প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক আশরাফুল ইসলাম, ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞ আসাদুর রহমান মোল্লা, ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, ঢাকা সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির কার্যকরী সভাপতি আবুল কালাম।

‘যানজট নিরসনে সময় লাগবে’
মন্ত্রী বক্তব্য রাখার পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে পড়েন। যানজটের সমাধান তাহলে কী- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, তিনি বলেন, ‘ফুটপাতের উপর যে গাড়ি পার্কিং করে রাখে, এটা এটা তো সাংবাদিকদের মাধ্যমে আজকে সকলের কাছে বার্তা পৌঁছে গেল। আমি আমার অবস্থান থেকে বলতে চাই অবশ্যই সহ সকলকে তাদের স্ব-স্ব অবস্থানে থেকে দায়িত্ব পালন করতে হবে।

‘আমরা যানজট নিরসন নিয়ে কাজ করছি। কিন্তু এটার জন্য সময় লাগবে।’

ঢাকার দুই মেয়রের নানা উদ্যোগের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘তারা সমস্যার সমাধান করতে চান বলেই এমন আকাঙ্ক্ষা ব্যক্ত করেছেন। আমাদের ভেবে দেখতে হবে তাদের সেই সক্ষমতা কতটুকু আছে। সিটি করপোরেশনের দায়িত্বের বাইরে এই দায়িত্ব তারা কতটুকু পালন করতে পারবে সেটা ভেবে দেখা যেতে পারে। যদি তাদের সক্ষম হতে থাকে অবশ্যই আমরা বিষয়টি কে সাধুবাদ জানাব।’

দায়িত্ব এড়িয়ে যাচ্ছেন কি না- এই প্রশ্নে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রশ্নটা গ্রহণযোগ্য না। একটা দেশকে ঠিক করতে হলে এসব প্রতিষ্ঠানকে কাজ করতে হবে। সবাই মিলে কাজ করতে হবে। আমার দায়িত্ব এড়িয়ে যাওয়ার কোনো বিষয় না।

‘আমি দায়িত্ব নিতে ভালোবাসি, যেটা আমার নেয়া উচিত। যে দায়িত্ব আমার নয় সেটা আমি নিতে গেলে আশানুরূপ কিছু ঘটবে না।’

এয়ারপোর্ট রোডে কেন পিলার ফেলে রেখেছেন এতদিন ধরে?
মন্ত্রীর বক্তব্যের পরে কথা বলেন নিরাপদ সড়ক চাই এর চেয়ারম্যান ইলিয়াস কাঞ্চন।

তিনি বলেন, ‘আমি চিন্তা করছিলাম এখানে এসে আমি গাড়িটা রাখব কোথায়? আপনাদের এখানে কি পার্কিংয়ের সুবিধা আছে।’

তিনি বলেন, ‘মন্ত্রী মহোদয়ের বক্তব্য আমি শুনছিলাম। তিনি বলছিলেন, করতে হবে? কিন্তু কে করবে? আমাদেরও দায়িত্ব আমরা পালন করছি না। আমরা শুধু বলে যাচ্ছি করতে হবে। কিন্তু আমরা কেউ দায়িত্ব নিচ্ছি না।’

ঢাকার বিমানবন্দর থেকে কুতুবখালী পর্যন্ত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণে দীর্ঘসূত্রতা নিয়ে প্রশ্ন রাখেন ইলিয়াস কাঞ্চন।

তিনি বলেন, ‘আপনারা শুধু বলেন, ১৩ বছর ধরে আছেন। ১৩ বছর ধরে তো আমরা শুধু ধুলাবালি, এয়ারপোর্ট রোডের উপর পাঁচ বছর ধরে একটা পিলার ফেলে রেখে দিয়েছেন। কেন পিলার ফেলে রেখেছেন এতদিন ধরে। কাজটি তো প্রোপারলি করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘একটা দেশের উদাহরণ দিতে পারবেন যে একটা প্রকল্প পাঁচ বছরের শেষ করবেন? কিন্তু কন্ট্রাকটর শেষ করবে না, ইঞ্জিনিয়ার শেষ করবে না, কিন্তু তাকে উল্টা আবার টাকা দেবেন। এমন পৃথিবীর কোথায় আছে?’

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বনানী, তেজগাঁও, মগবাজার, কমলাপুর, সায়েদাবাদ ও যাত্রাবাড়ী হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী পর্যন্ত এই এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের নির্মাণ কাজ চলছে। উড়ালসড়কের দৈর্ঘ্য হবে ১৯ দশমিক ৭৩ কিলোমিটার।

প্রকল্প হাতে নেয়ার পর নানা জটিলতায় ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের (উড়ালসড়ক) কাজ আটকে ছিল। ২০১৩ সালে প্রকল্পের জন্য ঠিকাদারদের সঙ্গে চুক্তি হলেও কাজ শুরু হতে আরও সাত বছর গড়িয়ে যায়। ২০২২ সালের ডিসেম্বরে বিমানবন্দর থেকে তেজগাঁও পর্যন্ত ১২ কিলোমিটার অংশ চালুর ঘোষণা থাকলেও এটা সম্ভব হবে কি না, তা নিয়ে আছে সংশয়।

ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, ‘শুধু লন্ডনের উদাহরণ দিলে হবে না। লন্ডনের তো রাস্তার উপরে এভাবে গাড়ি রেখে দেয় না। আমার বা আমাদের সরকারি সংস্থাগুলো যদি রাস্তায় গাড়ি রাখে, আপনারা পার্কিংয়ের কথা বলছেন। কিন্তু কাকে পার্কিংয়ে বাধা দেবেন তাহলে? সরকারের দায়িত্বটা কে নেবে এটা আমি বুঝতে পারলাম না। দায়িত্ব তো কেউ নিচ্ছে না।’

ঢাকার দুই মেয়র বাস রেশনালাইজেশনের যে উদ্যোগ নিয়েছে তার অগ্রগতিও জানতে চান ইলিয়াস কাঞ্চন। বলেন, ‘সেটা কি হয়েছে? তাহলে কেমনে হবে এই যানজটের সমাধান?’

সমাধান হচ্ছে
ইলিয়াস কাঞ্চনের বক্তব্যের পরে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সমাধান হলো, আমাদের ফুটপাতগুলো পরিষ্কার হয়ে যাওয়ার কথা।’
তিনি বলেন, ‘রাস্তার উপর যে গাড়ি রেখে দেয়া, এটা কখনই বরদাস্ত করার মতো না। এ বিষয়গুলো আমরা আজকে এখানে আলোচনা করেছি।
‘ইলিয়াস কাঞ্চন সাহেবের কথায় মনে হচ্ছে আমরা কোনো সলিউশন নেই। কাঙ্ক্ষিত মাত্রায় হয়তো আমরা সমাধান করতে পারছি না। কিন্তু সমাধান হচ্ছে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সাহেদ শফিক।

আরও পড়ুন:
বন্দরনগরীর উড়াল পথ নির্মাণে বাড়ছে সময় ও ব্যয়
আরেকটি এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে
চট্টগ্রামকে নান্দনিক করবে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে
বিআরটি প্রকল্পের গার্ডার ধসে চীনা নাগরিকসহ আহত ৪

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The mystery of the murder was opened based on the source of the bag

ব্যাগের সূত্রে খুলল মেছের হত্যা রহস্যের জট

ব্যাগের সূত্রে খুলল মেছের হত্যা রহস্যের জট মেছের আলী হত্যার ঘটনায় আটক রমজান আলী (বোঁয়ে) ও ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া ব্যাগ। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
সবজি ব্যবসায়ী মেছের আলীর মরদেহ উদ্ধার করার পর পুলিশ নিশ্চিত ছিল না যে এটি হত্যাকাণ্ড নাকি স্বাভাবিক মৃত্যু। কারণ মরদেহে কোনো আঘাতের চিহ্ন ছিল না। তবে ঘটনাস্থলে পাওয়া একটি ব্যাগে ছিল হত্যাকারীর আরেক শিকারের ঠিকানা। সেই সূত্র ধরেই বেরিয়ে আসে খুনির পরিচয়।

রাজধানীর খিলক্ষেত বরুয়া বাজারের সবজি ব্যবসায়ী মেছের আলীর মরদেহ উদ্ধার হয় ২৩ মে। মরদেহে আঘাতের কোনো চিহ্ন ছিল না। এটি স্বাভাবিক মৃত্যু নাকি হত্যাকাণ্ড তা-ও নিশ্চিত হতে পারছিল না পুলিশ।

ঘটনার মোড় ঘুরে যায় একটি ব্যাগের হদিস পাওয়ার পর। মরদেহ উদ্ধারের পরদিন ঘটনাস্থলের পাশে ওই ব্যাগটি পায় পুলিশ। আর এই ব্যাগের সূত্র ধরেই পুলিশ নিশ্চিত হয় যে এটি হত্যাকাণ্ড। শেষ পর্যন্ত শনাক্ত হয় হত্যাকারী।

মেছের আলী হত্যার ঘটনায় রোববার রাতে রমজান আলী নামে একজনকে শ্রীপুরের মাওনা থেকে গ্রেপ্তার করেছে খিলক্ষেত থানা পুলিশ। আদালতে হত্যার কথা স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন তিনি।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ক্যান্টনমেন্ট জোনের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার ইফতেখায়রুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন।

মামলার তদন্ত সূত্রে জানা গেছে, খিলক্ষেতের বরুয়া বাজার সংলগ্ন বাসা থেকে ২০ মে রাতে বের হয়ে নিখোঁজ হন মেছের আলী। ২৩ মে বিকেলে বরুয়ার বোয়ালিয়া খাল সংলগ্ন আশিয়ান হাউজিং প্রজেক্টের বালুর চর থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় মেছের আলীর ছেলে আল আমিন বাদী হয়ে খিলক্ষেত থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করেন।

মরদেহে কোনো আঘাতের চিহ্ন না থাকায় এবং প্রকাশ্যে কারও সঙ্গে মেছের আলীর শত্রুতা না থাকায় স্বাভাবিকভাবে ধারণা করা হচ্ছিল যে মেছের আলীর স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে। এমন ধারণা থেকেই পরিবারের পক্ষ থেকে হত্যা মামলা করা হয়নি।

ব্যাগের সূত্রে খুলল মেছের হত্যা রহস্যের জট
রাজধানীর খিলক্ষেতে বোয়ালিয়া খাল সংলগ্ন আশিয়ান হাউজিং প্রকল্পের বালুর চর থেকে উদ্ধার হওয়া সেই ব্যাগ। ছবি: নিউজবাংলা

ঘটনাস্থল থেকে ব্যাগ উদ্ধার

মরদেহ উদ্ধারের পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে গিয়ে সেখানে একটি ব্যাগ পান পুলিশের তদন্তকারীরা। সেই ব্যাগের ভেতরে কাস্তে, কম্বলসহ কিছু কাপড় ও মিনা নামে একজনের জন্ম নিবন্ধন ও টিকা কার্ড পাওয়া যায়।

তদন্ত-সংশ্লিষ্টরা জানান, ব্যাগ উদ্ধারের পর মিনা ও তার স্বামী শাহাবুদ্দিনকে সন্দেহভাজন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। কিন্তু তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, শাহাবুদ্দিন নিজেও একটি ঘটনার শিকার।

হত্যা রহস্যে নাটকীয় মোড়

শাহাবুদ্দিন ও মিনাকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে ক্যান্টনমেন্ট জোনের এডিসি ইফতেখায়রুল ইসলাম জানান, ঈদুল ফিতরের কয়েক দিন আগে মিনার স্বামী শাহাবুদ্দিন তাদের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনায় যাওয়ার উদ্যোগ নেন। সে লক্ষ্যে সহজ-সরল এই মানুষটি নারায়ণগঞ্জ থেকে রাজধানীর কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনে আসেন।

রেলওয়ে স্টেশনে বয়স্ক এক লোকের সঙ্গে শাহাবুদ্দিনের কথা হয়। তাকে ভাতিজা সম্বোধন করে ওই ব্যক্তি বলেন, ‘আমিও নেত্রকোণায় যাব, চল একসাথেই যাই। আমরা যদি এখানে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করি তাহলে অনেক সময় লেগে যাবে।’

ওই ব্যক্তি বিকল্প রাস্তার কথা বলে শাহাবুদ্দিনকে বাসে করে নিয়ে আসেন কারওয়ান বাজারে। সেখানে তিনি শাহাবুদ্দিনকে চা খাওয়ান। চেতনানাশক মেশানো ওই চা খাওয়ার তন্দ্রাচ্ছন্ন হয়ে পড়েন শাহাবুদ্দিন। আর এই ফাঁকে তার সঙ্গে থাকা ব্যাগ ও পকেটে থাকা ৪০০ টাকা নিয়ে পালিয়ে যান ওই বয়স্ক ব্যক্তি। পরবর্তীতে সাধারণ মানুষের সহযোগিতায় শাহাবুদ্দিন নেত্রকোণায় পৌঁছেন।

শাহাবুদ্দিনের ব্যাগ যেভাবে মেছের আলীর মরদেহের পাশে

তদন্ত কর্মকর্তারা জানান, প্রযুক্তির সহায়তায় ওই বয়স্ক ব্যক্তির সন্ধান পায় পুলিশ। তার নাম রমজান আলী। থাকেন গাজীপুরের শ্রীপুরে। তিনি মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করে চা বা অন্যান্য খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক মিশিয়ে ছিনতাই করেন। কয়েক বছর ধরে এই কাজ করে আসছিলেন তিনি।

খিলক্ষেতের বরুয়া বাজার ও মেছের আলীকে যেখানে পাওয়া যায় সেই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০ মে একজন বয়স্ক লোক অটোরিকশায় মেছের আলীর সঙ্গে যাচ্ছেন। তার কাঁধে ঝুলানো র‍্যাক্সিনের একটি ব্যাগ। আর এই ব্যাগের ভেতরে ছিল শাহাবুদ্দিনের ব্যাগটি, যা ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হয়।

ব্যাগের মধ্যে থাকা মিনা নামে এক নারীর জন্ম নিবন্ধন কার্ডের সূত্র ধরে খু্ঁজে বের করা হয় তার স্বামী শাহাবুদ্দিনকে। এই দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ ও প্রযুক্তির সহযোগিতায় পুলিশ পায় রমজানের তথ্য।

এডিসি ইফতেখায়রুল বলেন, ‘এই দুটি ঘটনা একই ব্যক্তি ঘটিয়েছে নিশ্চিত হওয়ার পর আমরা শ্রীপুর থেকে রমজান আলীকে গ্রেপ্তার করি। তিনি মেছের আলীকে চেতনানাশক খাইয়েছিলেন বলে স্বীকার করেছেন। আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘রমজান আলী মেছের আলীকে চেতনানাশক খাইয়ে তার কাছে থাকা টাকাপয়সা নিয়ে চম্পট দেয়। অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকা মেছের আলী অতিরিক্ত চেতনানাশক প্রয়োগে মারা গেছেন কিনা তা ফরেনসিক রিপোর্ট পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে।’

চার হাজার টাকার লোভে মেছের আলীকে হত্যা

শাহাবুদ্দিনের মতো মেছের আলীকেও টার্গেট করে চেতনানাশক খাইয়ে তার কাছে থাকা ৪ হাজার টাকা নিয়ে যান রমজান।

তাকে জিজ্ঞাসাবাদের বরাতে এডিসি ইফতেখায়রুল জানান, মেছের আলী নিখোঁজের দিন রমজানের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। মেছের আলীর সবজির ভ্যানে বসেই অনেকক্ষণ কথা হয় দুজনের। রাতে বাসা থেকে মেছের আলী বের হয়ে রেলগেটের সামনে আসেন। সেখানে এক জায়গায় বসার পর রমজানা তাকে চা পান করান। চেতনানাশক মেশানো ওই চা পান করার পর জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন মেছের আলী। পরে তার কাছে থাকা চার হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে দেহ টেনে নিয়ে বড় বড় ঘাস আছে এমন জায়গায় ফেলে আসেন রমজান।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘মেছের আলীর সঙ্গে পরিচয় হওয়ার পর রমজান দেখতে পান যে তার কাছে ৪ হাজার টাকা রয়েছে। এই চার হাজার টাকার লোভেই মেছেরকে দেয়া চায়ে চারটি চেতনানাশক বড়ি মিশিয়ে দেন তিনি।

‘মেছের আলীকে ফেলে যাওয়ার সময় রমজান আলী ভুলবশত ওই ব্যাগটি ঘটনাস্থলে ফেলে যান। আর ওই ব্যাগের সূত্র ধরেই আসামিকে শনাক্ত ও গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়।’

আরও পড়ুন:
আধিপত্য, টেন্ডার-চাঁদাবাজির দ্বন্দ্বের বলি টিপু, ৩৩ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট
বলাৎকারের দৃশ্য দেখে ফেলায় শিশুকে শ্বাসরোধে হত্যা
মহাসড়কে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাতে যুবককে হত্যা
জুয়ার টাকা ভাগাভাগি নিয়ে হত্যা, সব আসামি খালাস

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Clash of BNP and pro Awami lawyers in judge court injured 5

জজ কোর্টে বিএনপি ও আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের সংঘর্ষ, আহত ৫

জজ কোর্টে বিএনপি ও আওয়ামীপন্থী আইনজীবীদের সংঘর্ষ, আহত ৫ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অ্যাডভোকেট মোসাম্মৎ মুক্তি। ছবি: নিউজবাংলা
আহতদের সবাই জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য। তাদের মধ্যে দুজন ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিউরো সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন।

ঢাকা জজ কোর্টে বিএনপি ও আওয়ামী লীগপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সোমবার বিকেল ৩টার দিকে সৃষ্ট এই ঘটনায় ৫ জন আহত হয়েছেন। তাদের মধ্যে দু’জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সংঘর্ষে আহতদের সবাই বিএনপিপন্থী জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য। তারা হলেন- ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক, অ্যাডভোকেট মুজাহিদুল ইসলাম সায়েম, অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন তারুণ্য, অ্যাডভোকেট জহিরুল ইসলাম ও অ্যাডভোকেট মোসাম্মৎ মুক্তি।

তাদের মধ্যে ওমর ফারুক ওরফে ফারুকীকে ঢামেক নিউরো সার্জারি ১০০ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করে চিকিৎসা দেয়া হয়। রাত ৮টার দিকে তাকে ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এছাড়া মোসাম্মৎ মুক্তি ৯৮ নম্বর ওয়ার্ডের নিউরো সার্জারি বিভাগে চিকিৎসাধীন। বাকি তিনজন প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে হাসপাতাল ছেড়ে গেছেন।

এদিকে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বিএনপিপন্থী আইনজীবী নেতারা আহতদের দেখতে ঢামেক হাসপাতালে যান। তারা দায়িত্বরত চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলে আহতদের চিকিৎসার খোঁজখবর নেন।

তারা হলেন- ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সালাম, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের ঢাকা বার ইউনিটের সভাপতি অ্যাডভোকেট এম মাসুদ আহমেদ তালুকদার, ফোরামের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভাপতি এ জে মোহাম্মদ আলী ও সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল।

ঢামেক পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া জানান, জজকোর্ট প্রাঙ্গণে সংঘর্ষের ঘটনায় দুজন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। অপর তিনজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Clash in Mirpur Facebook post about the Holy Prophet

মহানবীকে নিয়ে ফেসবুক পোস্ট, মিরপুরে সংঘর্ষ

মহানবীকে নিয়ে ফেসবুক পোস্ট, মিরপুরে সংঘর্ষ হামলা হয়েছে পুলিশের ওপর। ছবি: সংগৃহীত
রোববার রাত ৮টার দিকে মিরপুর ১৩ নম্বরে পুলিশ স্টাফ কলেজের সামনে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট ছুড়েছে। এক পর্যায়ে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ।

মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে নিয়ে কটূক্তি করে ফেসবুকে পোষ্ট দেয়ার অভিযোগকে কেন্দ্র করে রাজধানীর মিরপুরে পুলিশের সঙ্গে বিক্ষুব্ধদের সংঘর্ষ হয়েছে।

রোববার রাত ৮টার দিকে মিরপুর ১৩ নম্বরে পুলিশ স্টাফ কলেজের সামনে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট ছুড়েছে। এক পর্যায়ে শুরু হয় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ।

রাত ১০টার পরও থেমে থেমে হামলা হচ্ছিল বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জানা গেছে, হাফিজ সিরাজী নামে এক ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে দেয়া স্ট্যাটাস থেকে ঘটনার শুরু। গত শুক্রবার দুপুর ১২টা এক মিনিটে এ অ্যাকাউন্ট থেকে স্ট্যাটাস দিলে রোববার সন্ধ্যায় মিরপুর ১৩ নম্বরে করেকজন সন্দেহ করে একজনকে আটক করে। এ সময় কয়েকজন যুবক তাকে মারধর করলে খবর পেয়ে পুলিশ তাকে উদ্ধারের চেষ্টা করে। এরপরই সংঘর্ষ বাধে।

হাফিজ সিরাজী নামের অ্যাকাউন্ট থেকে দেয়া স্ট্যাটাসের জন্য যাকে মারধর করা হয়েছে তিনি দাবি করেছেন, তার নাম সোহেল। তিনি স্থানীয় দোকানদার। উদ্ধার করে হাসপাতালে আনার পর এই ব্যক্তি বলেন, তার আইডি হ্যাক করে এসব পোস্ট দেয়া হয়েছে। তারই এক রুমমেট অন্যদের ডেকে এনে হামলা করিয়েছেন।

রাত পৌনে ১০টার দিকে কাফরুল থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) কামরুল ইসলাম বলেন, ‘মহানবীকে নিয়ে কটূক্তি করেছে- এমন অভিযোগে এক ব্যক্তিকে মারধর করে জনতা। তাকে উদ্ধার করে আমরা হাসপাতালে পাঠিয়েছি। এর ফলে আমাদের ওপর হামলা করেছে। এখনো থেমে থেমে হামলা করা হচ্ছে। কতজন আহত হয়েছে তা এখনো বলা যাচ্ছে না।’

হামলাকারীদের বেশ কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
7 members of Dalal gang were arrested from DMK Hospital

ঢামেক হাসপাতাল থেকে দালাল চক্রের ৭ সদস্য আটক

ঢামেক হাসপাতাল থেকে দালাল চক্রের ৭ সদস্য আটক অভিযানে আটক কয়েকজন। ছবি: নিউজবাংলা
গত বৃহস্পতি ও রোববার গোপন সংবাদে অভিযান চালিয়ে শাহবাগ থানা পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের আটক করে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল থেকে দালাল চক্রের সাত সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

গত বৃহস্পতি ও রোববার গোপন সংবাদে অভিযান চালিয়ে শাহবাগ থানা পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের আটক করে।

এর মধ্যে ২১২ নম্বর গাইনি ওয়ার্ড থেকে এক নারীসহ চারজনকে আটক করা হয় বৃহস্পতিবার।

বিষয়টি নিশ্চিত করেন হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাজমুল হক। তিনি বলেন, তারা হাসপাতালের কোনো বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। আমরা তাদেরকে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করি।

এ ছাড়া রোববার বিকেলে মেডিসিন ওয়ার্ড থেকে আটক করা হয় তিনজনকে। এদের মধ্যে একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক বলেন, তিনজনকে আটক করা হয়। একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের ছাত্র হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের কাছে মুচলেকা নিয়ে তাকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে।আরেকজন শিক্ষার্থীকেও মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। একজনকে শাহবাগ থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ধরনের অভিযান আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

আরও পড়ুন:
সাভারে ডিবি কর্মকর্তাকে ছুরিকাঘাত, আটক ২
অনুপ্রবেশের অভিযোগে ৪ দালাল ও ১৯ রোহিঙ্গা আটক
স্ত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যার অভিযোগে স্বামী আটক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The price has increased but the charger fan does not match
দাবদাহে বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং

দাম বেড়েছে চার্জার ফ্যানের, বেড়েছে সংকটও

দাম বেড়েছে চার্জার ফ্যানের, বেড়েছে সংকটও রোববার গুলিস্তানে সুন্দরবন মার্কেটে এক দোকানে চার্জার ফ্যানের জন্য ক্রেতার ভিড়। ছবি: নিউজবাংলা
দেশজুড়ে দাবদাহের মধ্যে চলছে বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং। এ অবস্থায় চার্জার ফ্যানের চাহিদা বেড়ে গেছে ব্যাপকভাবে। বেড়েছে এসি, আইপিএস, সোলার প্যানেল এবং ব্যাটারির বিক্রিও। চাহিদা বাড়ায় দামও বাড়িয়ে দিয়েছেন দোকানিরা। তারপরও মিলছে না চার্জার ফ্যান। বলা হচ্ছে, সব বিক্রি হয়ে গেছে।

বেলাল উদ্দিন পরিবার নিয়ে থাকেন রাজধানীর শান্তিনগরে। চলমান দাবদাহে বিদ্যুতের অব্যাহত লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ হয়ে রোববার সকালে গেলেন এলাকার ইলেক্ট্রনিক্সের দোকানে। উদ্দেশ্য, চার্জার ফ্যান কেনা। একে একে ৪-৫টি দোকান ঘুরেও কোন দোকানেই মিললো না চার্জার ফ্যান। দোকানিদের বক্তব্য, ক্রেতার চাপ বেশি। স্টকে থাকা সবই বিক্রি হয়ে গেছে।

বেলাল উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘৪-৫ দোকান ঘুরে না পেয়ে অবশেষে তিনি যান ওয়াল্টনের শো-রুমে। শান্তিনগর মোড় থেকে মালিবাগের দিকে এগুতেই রাজিয়া মঞ্জিলে ওই শো-রুমে যাওয়ার পরও হতাশ হতে হলো। শো-রুমের এক কর্মী বললেন- গতকালই (শনিবার) আমাদের এখানে অন্তত একশ’ চার্জার ফ্যান বিক্রি হয়েছে। স্টক শেষ। কোম্পানিতে অর্ডার পাঠানো হয়েছে। দুই/তিন পর এল পেতে পারেন।’

‘তবে ওই বিক্রেতা ১২ ইঞ্চি চার্জার ফ্যানের দাম বললেন ৩ হাজার ৯৯০ টাকা। আর ১৪ ইঞ্চি আকারে ফ্যানের দাম ৪ হাজার ৩৯০ টাকা। এটা আমার কাছে বেশি মনে হয়েছে। প্রচণ্ড গরমে লোডশেডিংয়ের সুযোগ নিয়ে বিক্রেতারা চার্জার ফ্যানের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন।’

বাজার ঘুরে অবশ্য চার্জার ফ্যানের দাম নিয়ে বেলাল উদ্দিনের বক্তব্যের সত্যতা মিলেছে। কোম্পানিভেদে প্রতিটি চার্জার ফ্যানের দাম ১০০ থেকে আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত বেড়ে গেছে।

গুলিস্তানের সুন্দরবন মার্কেটের পাইকারি ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য বিক্রেতা রাজিব খানও দাম বেড়ে যাওয়ার কথা স্বীকার করেন।

রোববার দুপুরে রাজিবের ‘খান এন্টারপ্রাইজ’ নামের দোকানে গিয়ে দেখা যায় ক্রেতার ভিড়। ওই মার্কেটের অন্য সব ইলেক্ট্রনিকসের দোকানেও ক্রেতার ব্যাপক আনাগোনা দেখা গেছে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরে থেকে অনেকেই এসেছেন তার দোকানে। সবার একটাই চাহিদা- চার্জার ফ্যান।

দাম বেড়েছে চার্জার ফ্যানের, বেড়েছে সংকটও

রাজিব খান বলেন, ‘গত ৪-৫ দিন ধরে চার্জার ফ্যানের চাহিদা অনেকটা বেড়ে গেছে। চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় দামও বেড়েছে। এগুলো আমদানি করা পণ্য। মার্কেটে সরবরাহে ক্রাইসিস দেখা দিলেই দাম বেড়ে যায়। আমদানিকারকরা যে পণ্য এক মাস ধরে বিক্রি করবেন, চাহিদা বাড়ায় সেই পণ্য ১-২ দিনেই শেষ হয়ে গেছে।

‘আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান দাম বাড়ানোর কারণে আমাদেরও দাম বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে। ফলে খুচরা বিক্রেতাদেরও বেশি দামে কিনতে হচ্ছে। গত ৪-৫ দিনে ফ্যানের সাইজ ও কোয়ালিটি ভেদে ১০০ থেকে আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত দাম বেড়ে গেছে।’

মহল্লার দোকানেও একই চিত্র

শনিবার রাত সাড়ে ১০টায়ও মোহাম্মদপুরের নুরজাহান রোডে ইলেক্ট্রনিক্সের দোকানগুলোতে চার্জার ফ্যান কেনার হিড়িক দেখা যায়।

এখানে চার্জার ফ্যান কিনতে আসা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়য়ের ছাত্র আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, ‘আমার বাসা মোহাম্মদপুর হাউজিং লিনটেডে। লোডশেডিংয়ের কারণে গরমে দিনে রুমে থাকা কষ্টকর হয়ে পড়েছে। কিছুক্ষণ পর পরই কারেন্ট চলে যায়। তাই চার্জার ফ্যান কিনতে এসেছি। কিন্তু দোকানিরা দাম অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছে। যে ফ্যান আগে ৫ হাজার টাকায় কিনেছি, সেই ফ্যান এখন সাড়ে ৬ হাজার টাকা চাচ্ছে। দোকানি বলছে- ফ্যানের সাপ্লাই কম অনেক, তাই দাম বেশি।’

নোমানের মতো আরও বেশ কয়েকজন ক্রেতার সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার এই প্রতিবেদকের। তাদের কেউ চার্জার ফ্যান কিনেছেন, কেউবা কিনতে এসেছেন। সবার একটাই কথা, মনের মতো চার্জার ফ্যান পাওয়া যাচ্ছে না। আর পেলেও দাম অনেক বেশি।

সোলার প্যানেল ও ব্যাটারির দাম বেড়েছে

প্রচণ্ড গরমের মধ্যে বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের কারণে চার্জার ফ্যানের চাহিদা সবচেয়ে বেশি হলেও এই মার্কেটে এসি, আইপিএস, সোলার প্যানেল এবং ব্যাটারির বিক্রি বেড়ে গেছে। প্রভাব পড়েছে দামেও।

এ অবস্থায় ঢাকার বাইরে থেকে আসা ক্রেতাদের এসব পণ্য কিনতে গিয়ে বিপাকে পড়তে হচ্ছে।

মার্কেটটির ফারহানা ইলেক্ট্রনিকসের বিক্রেতা রবিউল আলম বলেন, ‘সোলার আইটেমের সঙ্গে এসি/ডিসি লাইটের বিক্রিও খারাপ না। তবে সবচেয়ে বেশি চাহিদা চার্জার ফ্যানের। তবে সরাসরি বিদ্যুৎনির্ভর ফ্যানের চাহিদা নেই।’

কেরানীগঞ্জ থেকে আসা মো. সুমন বলেন, ‘গরম বেড়ে যাওয়ার কারণে সোলার আইটেম ও আইপিএসের চাহিদা বেড়েছে। দোকানের জন্য আজ মাল কিনতে এসে দেখি দাম অনেক বাড়তি।’

সুন্দরবন মার্কেটের দোতলায় ওয়ার্ল্ড পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেদের মালিক মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘গরমের কারণে আইপিএসের চাহিদা ও দাম দুই-ই বেড়েছে। সোলার প্যানেল ও ব্যাটারির বিক্রি বেড়েছে। সঙ্গে বেড়েছে দামও। সোলার প্যানেলে প্রতি ওয়াটে দাম বেড়েছে ১০ টাকা করে। এছাড়া মানভেদে ব্যাটারির দাম বেড়েছে ২ থেকে ৫ হাজার টাকা।

তিনি বলেন, ‘ঢাকার বাইরের ব্যবসায়ীরা মাল কিনতে এসে দেখছেন দাম বেশি। তারাও মন খারাপ করছেন। আমাদের তো কিছু করার নেই। আমরা যেমন দামে কিনি তেমন দামে বিক্রি করি। তবে দাম বাড়লেও বিক্রি ভালো।’

দাম বেড়েছে চার্জার ফ্যানের, বেড়েছে সংকটও

বেড়েছে এসির চাহিদাও

নুরজাহান রোডের আরবি ইলেক্ট্রনিক্সের ইনচার্জ মঞ্জুর মোর্সেদ বলেন, ‘গত ৩-৪ দিনে এসির বিক্রি বেড়েছে। স্বাভাবিক সময়ের তুলনায় ৩-৪ গুণ বেশি এসি বিক্রি হচ্ছে এখন। তবে সমস্যা হচ্ছে এসির সাপ্লাই কম।’

মোহাম্মদপুরের সপ্তর্শী ইলেক্ট্রনিক্সের মালিক সুমন নন্দী বলেন, ‘রোজার ঈদের সময় গরমে এসি বিক্রি হয়েছিল অনেক। তবে গত কয়েক দিনের গরমেও এসির বিক্রি বেড়েছে, তবে রোজার ঈদের সময়ের চেয়ে একটু কম। এসি, কুলার, চার্জার ফ্যানের চাহিদা বেশি। আমাদের সাধারণ দোকান। অন্য সময় দিনে ১-২টা এসি বিক্রি হলেও এখন ৫ থেকে ৭টা এসি বিক্রি হচ্ছে।’

এসির টেকনিশিয়ানের অভাব

এসির বিক্রি বেড়ে যাওয়ায় দোকানিরা পড়েছেন আরেক সংকটে। স্বাভাবিকভাবে দিনে এক থেকে দুটি এসি বিক্রি হয়। সেই চাহিদা মাথায় রেখেই দোকানিরা এসি বাসা বা অফিসে নিয়ে সেট করে দিয়ে আসার জন্য টেকনিশিয়ান রাখেন।

বর্তমানে বিক্রির পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় এসি নির্দিষ্ট সময়ে সেট করে দিয়ে আসার মতো টেকনিশিয়ান নেই অধিকাংশ দোকানে। এ অবস্থায় সার্বক্ষণিক ব্যস্ত থাকতে হচ্ছে হাতেগোনা টেকনিশিয়ানদের। কোনো কোনো ক্রেতার বাসায় গভীর রাতে গিয়ে এসি সেট করে দিচ্ছেন তারা।

এসি কিনতে আসা ঢাকা মেডিক্যালের চিকিৎসক তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাসায় এয়ার কুলার আছে। কিন্ত এই গরমে তা দিয়ে কাজ হচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে এসি কিনতে এসেছি। তবে সমস্যা হলো দোকানিরা বলছেন তাদের টেকনিশিয়ানের অভাব। এসি সেট করে দিতে একদিন দেরি হবে।’

মোহাম্মদপুরের এইচ এ ইলেক্ট্রনিক্সের বিক্রেতা ওহিদুর রহমান বলেন, ‘এসি টেকনিশিয়ানের অভাব। গরমের কারণে হুট করে এসির চাহিদা বেড়েছে। কিন্তু টেকনিশিয়ান অর্থাৎ এসি বাসায় গিয়ে সেট করে দেয়ার জনবল তো বাড়েনি। তাই তাদের এখন পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে এসি বিক্রি করেও ক্রেতার চাহিদা অনুযায়ী সার্ভিস দিতে পারছি না।’

তিনি বলেন, ‘মার্কেটে এয়ার কুলারের অভাব। সাপ্লাই থাকলে এখন প্রতিদিন অন্তত ২০টা এয়ার কুলার বিক্রি করতে পারতাম। এসিরও সাপ্লাই নেই। কারণ এলসি করতে পারছে না কোম্পানি।’

গরমে বেড়েছে রোগবালাই

একে তো ভয়াবহ গরম, তার ওপর চলছে বিদ্যুতের লোডশেডিং। এ অবস্থায় গরমজনিত রোগবালাই বাড়ছে। বিশেষ করে শিশুরা বেশি অসুস্থ হয়ে পড়ছে। ফলে ওষুধের দোকানে ভিড় বেড়েছে। সবচেয়ে বেশি চাহিদা শিশুদের সর্দি-জ্বর, কাশির সিরাপ, ওরস্যালাইন ও গ্লকোজের।

বসিলার রিফাত মেডিক্যাল কেয়ারের মালিক মো. আজাদ বলেন, ‘গত ৪-৫ দিনে এলার্জি ট্যাবলেট, স্যালাইন, ঘামাচি পাউডার, গ্লুকোজ, টেস্টি স্যালাইন, জুস, কোমল পানীয় বিক্রি বেড়েছে। আর শিশুদের সর্দি-জ্বর ও কাশির ওষুধের বিক্রিও অনেকটা বেড়ে গেছে। তবে এসব ওষুধের সাপ্লাইয়ে কোনো ঘাটতি নেই।’

আরও পড়ুন:
গরম সহসাই কমছে না
গরমে নিয়মিত খাবেন যে ৭ খাবার
গরমে সুস্থ থাকতে যা করবেন
গরম একটু বাড়বে, হতে পারে বৃষ্টিও

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rumors of fleeing the country DB chief Haroon

দেশ ছেড়ে পালানোর খবর গুজব: ডিবিপ্রধান হারুন

দেশ ছেড়ে পালানোর খবর গুজব: ডিবিপ্রধান হারুন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মুহাম্মদ হারুন অর রশিদ। ছবি: নিউজবাংলা
ডিবিপ্রধান হারুন বলেন, ‘তারা বলছে, অনেক সরকারি কর্মকর্তা দেশের বাইরে যাওয়ার পর ফিরবেন না। এটা সম্পূর্ণ গুজব।’

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া পুলিশ ও সরকারি কয়েকজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার ভিডিওকে ‘গুজব’ বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) প্রধান মুহাম্মদ হারুন অর রশিদ।

তিনি বলেন, ‘গুজব ছড়িয়ে পুলিশের মনোবল ভাঙার কোনো সুযোগ নেই।’

সম্প্রতি ডিবিপ্রধান হারুন সিঙ্গাপুরে নিজের ও স্ত্রীর চিকিৎসার জন্য ১৩ দিনের ছুটি নেন।

ছুটির আদেশ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর তিনি আর দেশে ফিরবেন না বলে গুঞ্জন ওঠে।

রোববার নিজ কার্যালয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভিডিও প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘এটা শুধু আমাকে নিয়ে নয়, গত কয়েকদিন ধরে দেখা যাচ্ছে দেশের বাইরে থেকেও কিছু লোক সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়ে ভিডিও করছে। তারা বলছে, অনেক সরকারি কর্মকর্তা দেশের বাইরে যাওয়ার পর ফিরবেন না। এটা সম্পূর্ণ গুজব। সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণের অনুমতি প্রাপ্তি একটি দীর্ঘ ও জটিল প্রক্রিয়া। এর জন্য একাধিক স্তরে অনুমোদনের প্রয়োজন হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তাদেরও অন্যদের মতোই পরিবার আছে এবং বিশেষ কারণে তাদের ছুটির প্রয়োজন হয়।’

‘কেউ যদি মনে করে এ ধরনের ভিডিও বানালে পুলিশের মনোবল ভেঙে পড়বে, তারা বোকার স্বর্গে বাস করছে। তারা পুলিশের বিরুদ্ধে এসব কথা ছড়িয়ে ভিউ পেতে পারে, অর্থ উপার্জন করতে পারে। কিন্তু আমি পুলিশের মনোবল ভাঙার কোনো কারণ দেখছি না।’

আরও পড়ুন:
নড়াইলে লাঞ্ছিত অধ্যক্ষ স্বপন এখনও আত্মগোপনে
কলেজে ফিরতে ভয় পাচ্ছেন অধ্যক্ষ স্বপন
অধ্যক্ষকে জুতার মালা পরানো শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা, শিক্ষককে শোকজ
‘ধর্ম অবমাননা’ ইস্যু: জুনে ৮ মামলায় গ্রেপ্তার ৩৬
শিক্ষককে জুতার মালা: কলেজে বিভেদ পেয়েছে মাউশি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Army officers stolen pistol recovered after 4 years

সেনা কর্মকর্তার চুরি হওয়া পিস্তল উদ্ধার ৪ বছর পর

সেনা কর্মকর্তার চুরি হওয়া পিস্তল উদ্ধার ৪ বছর পর পিবিআইয়ের উদ্ধার করা সেনা কর্মকর্তার পিস্তল। ছবি: নিউজবাংলা
চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তারেক হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বাড়ির রান্না ঘরের মাটির নিচে অস্ত্রটি লুকানো ছিল।

রাজধানীর মিরপুরের ভাষানটেকে এক সেনা কর্মকর্তার বাসা থেকে চুরি হওয়া পিস্তল চার বছর পর উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) শনিবার রাতে বরিশালের গৌরনদী থেকে আগ্নেয়াস্ত্রটি উদ্ধার করে।

এ সময় চুরির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তারেক হাওলাদারকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বাড়ির রান্না ঘরের মাটির নিচে অস্ত্রটি লুকানো ছিল।

রোববার দুপুরে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পিবিআই ঢাকা মেট্রো উত্তর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বিশেষ পুলিশ সুপার মো. জাহাঙ্গীর আলম।

তিনি জানান, ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরের ১৭ তারিখ রাতে বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. সামছুল হুদার বাসায় চুরি হয়।

চোর বাসার গ্রিল কেটে ভেতরে ঢুকে টাকা, ঘড়িসহ বিভিন্ন সামগ্রীর সঙ্গে লাইসেন্স করা বিদেশি পিস্তল, ৫০টি গুলি ও দুটি ম্যাগজিন নিয়ে যায়।

ওই ঘটনায় ভুক্তভোগী ভাষানটেক থানায় মামলা করেন।

পিবিআই জানায়, অবৈধভাবে আগ্নেয়াস্ত্র রাখায় তারেকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ছাড়া তার বিরুদ্ধে চুরির মামলাসহ ভাষানটেক থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলার তথ্য পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন:
বিদেশি পিস্তলসহ দুই যুবক গ্রেপ্তার

মন্তব্য

p
উপরে