× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Jamuna Bank did not reduce its dividend despite declining income
google_news print-icon

আয় কমলেও লভ্যাংশ কমায়নি যমুনা ব্যাংক

আয়-কমলেও-লভ্যাংশ-কমায়নি-যমুনা-ব্যাংক
২০১৫ সাল থেকেই ব্যাংকটি নগদ লভ্যাংশে জোর দিয়ে আসছে। মাঝে ২০১৭ সালে একবার ২২ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল। বাকি ৬ বছরই নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

আগের তিন বছরের ধারাবাহিকতায় যমুনা ব্যাংক গত ডিসেম্বরে সমাপ্ত অর্থবছরের জন্যও নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। ব্যাংকটির আয় আগের বছরের তুলনায় কিছুটা কমলেও তারা লভ্যাংশ না কমানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আগের বছরের মতোই ব্যাংকটি শেয়ার প্রতি এক টাকা ৭৫ পয়সা অর্থাৎ সাড়ে ১৭ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্যাংকটি।

বুধবার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন ব্যাংকটির একজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা।

আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত যমুনার শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৩ টাকা ৩৫ পয়সা। আগের বছরে এই আয় ছিল ৩ টাকা ৫৪ পয়সা।

এই প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটি গত অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে লোকসান দিয়েছে। কারণ জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন প্রান্তিক শেষে যমুনার শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৩ টাকা ৮৭ পয়সা।

২০১৫ সাল থেকেই ব্যাংকটি নগদ লভ্যাংশে জোর দিয়ে আসছে। মাঝে ২০১৭ সালে একবার ২২ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল। বাকি ৬ বছরই নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করে।

চলতি বছর এখন পর্যন্ত যেসব ব্যাংক লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে, এর মধ্যে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের লোকসান বেড়েছে। আর যমুনার আয় কিছুটা কমেছে। বাকি সব ব্যাংক আয় বাড়াতে পেরেছে। তবে সব ব্যাংক লভ্যাংশ বাড়িয়েছে এমন নয়।

যমুনার আয়ের পাশাপাশি সম্পদমূল্য কমেছে। গত ডিসেম্বর শেষে প্রতিটি শেয়ারের বিপরীতে ব্যাংকটির সম্পদ ছিল ২৮ টাকা ৪১ পয়সা, যা আগের বছর ছিল ৩২ টাকা ৬ পয়সা।

যারা যমুনার লভ্যাংশ নিতে চান, তাদেরকে আগামী ২১ এপ্রিল শেয়ার ধরে রাখতে হবে। অর্থাৎ সেদিনই হবে ব্যাংকটির লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট। এই লভ্যাংশ চূড়ান্ত করতে বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকা হয়েছে আগামী ১৪ জুন।

পুঁজিবাজারে যমুনা ব্যাংকের শেয়ারদর গত এক বছরে অনেকটাই বেড়েছে। এই এক বছরে শেয়ার দর ১৬ টাকা ৪০ পয়সা থেকে ২৬ টাকা ৪০ পয়সা পর্যন্ত উঠানামা করেছে। লভ্যাংশ ঘোষণার দিন শেয়ার দর ছিল ২৩ টাকা ৭০ পয়সা। এদিন বেশিরভাগ ব্যাংকের শেয়ারদর কমলেও যমুনা দর ধরে রাখতে পারে।

আরও পড়ুন:
ইউসিবির লভ্যাংশ এবারও ১০ শতাংশ, পুরোটাই বোনাসে
১৭ টাকার শেয়ারে লভ্যাংশ ২২.৫%
প্রাইম ব্যাংক: ৫ বছরে সর্বোচ্চ আয়, লভ্যাংশ এক দশকের সেরা
আইসিবি ইসলামিকের লোকসান বেড়ে দ্বিগুণ
আইএফআইসি: আয় দ্বিগুণ, লভ্যাংশে ‘সেই হতাশা’

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Transactions also decreased along with the index

সূচকের সঙ্গে কমেছে লেনদেনও

সূচকের সঙ্গে কমেছে লেনদেনও
ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ১২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২০৭ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৫২ পয়েন্টে। এছাড়া ডিএসই-৩০ সূচক দশমিক ৯৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২ হাজার ২১৭ পয়েন্টে।

সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে রোববার দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। একইসঙ্গে কমেছে লেনদেনও।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ১২ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২০৭ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৫২ পয়েন্টে। এছাড়া ডিএসই-৩০ সূচক দশমিক ৯৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ২ হাজার ২১৭ পয়েন্টে।

দিনভর লেনদেন হওয়া ৩১৭ কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৯টির, কমেছে ৮৫টির এবং দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২১৩টির।

ডিএসইতে ৪৫২ কোটি ২৯ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে রোববার, যা আগের কার্যদিবস থেকে ৩১ কোটি ৭০ লাখ টাকা কম। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছিল ৪৮৩ কোটি ৯৯ লাখ টাকার শেয়ার।

অপরদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ২৮ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৩২৩ পয়েন্ট।

সিএসইতে ১৩১টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এর মধ্যে ১০টির দর বেড়েছে, কমেছে ৪৫টির। দর অপরিবর্তিত রয়েছে ৭৬টির। সিএসইতে ২৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে অস্থিরতা নিরসনে বিনিয়োগকারীদের ১২ দাবি
আসিফ ইব্রাহিম সিএসইর চেয়ারম্যান পুনর্নির্বাচিত
পুঁজিবাজার জোর করে ভালো রাখার উদ্যোগ ভেস্তে গেছে
ডিএসইতে নতুন চার স্বতন্ত্র পরিচালক
খরা কাটিয়ে লেনদেন বাড়লেও দরপতন পুঁজিবাজারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In the last day of the week the index increased but the transactions decreased

সপ্তাহের শেষ দিনে সূচক বাড়লেও কমেছে লেনদেন

সপ্তাহের শেষ দিনে সূচক বাড়লেও কমেছে লেনদেন ফাইল ছবি
দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২২০ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৫৬ পয়েন্টে এবং ডিএসই–৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ২১৮ পয়েন্টে।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে সূচক বেড়েছে। তবে দিন শেষে লেনদেন আগের দিনের চেয়ে কমেছে। অপরিবর্তিত রয়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর।

বৃহস্পতিবার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২২০ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৫৬ পয়েন্টে এবং ডিএসই–৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ২১৮ পয়েন্টে।

দিনভর লেনদেন হওয়া ৩১৪ কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৫০টির, দর কমেছে ৫৬টির এবং দর অপরিবর্তিত রয়েছে ২০৮টির।

এদিন ডিএসইতে ৪৮৩ কোটি ৯৯ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা আগের কার্যদিবস থেকে ১২৩ কোটি ১৭ লাখ টাকা কম। এর আগেরদিন লেনদেন হয়েছিল ৬০৭ কোটি ১৬ লাখ টাকার।

আরক শেয়ারবাজার চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ৩ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৩৫২ পয়েন্টে।

সিএসইতে ১৪১টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২০টির দর বেড়েছে, কমেছে ৩১টির এবং ৯০টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ১৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ডিএসইর সা‌বেক পরিচালক গোলাম রসুলের মৃত্যু
ডিএসইতে লেনদেন ৭০০ কোটি ছাড়াল
সূচকের সামান্য পতনে লেনদেন শেষ পুঁজিবাজারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death of former director of DSE Golam Rasul

ডিএসইর সা‌বেক পরিচালক গোলাম রসুলের মৃত্যু

ডিএসইর সা‌বেক পরিচালক গোলাম রসুলের মৃত্যু ডিএসইরি সাবেক পরিচালক খাজা গোলাম রসুল। ছবি: সংগৃহীত
গোলাম রসুল দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে, এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সাবেক পরিচালক খাজা গোলাম রসুলের মৃত্যু হয়েছে। তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

রাজধানীর গুলশানে নিজ বাসায় শনিবার রাত ১২টা ৪০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

গোলাম রসুল দীর্ঘদিন ধরে ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন। তিনি স্ত্রী, এক মেয়ে, এক ছেলেসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

গোলাম রসুলের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে পুঁজিবাজার সাংবাদিকদের সংগঠন ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিস্ট ফোরাম (সিএমজেএফ)।

শোকবার্তায় সিএমজেএফের সভাপতি জিয়াউর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু আলী বলেন, ‘গোলাম রসুলের মৃত্যুতে আমরা শোকাহত। সিএমজেএফ পরিবারের পক্ষ থেকে মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। একই সঙ্গে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজার জোর করে ভালো রাখার উদ্যোগ ভেস্তে গেছে
ডিএসইতে নতুন চার স্বতন্ত্র পরিচালক
খরা কাটিয়ে লেনদেন বাড়লেও দরপতন পুঁজিবাজারে
বিমা দাবির ৫ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করল জেনিথ ইসলামী লাইফ
রিলায়েন্স ব্রোকারেজের ট্রেড সাসপেন্ড

মন্তব্য

বাংলাদেশ
700 crore in transactions on DSE

ডিএসইতে লেনদেন ৭০০ কোটি ছাড়াল

ডিএসইতে লেনদেন ৭০০ কোটি ছাড়াল
সোমবার ডিএসইতে ৩৪৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০০টির, কমেছে ৬৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭৮টির।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সোমবারের লেনদেন শেষ হয়েছে মূল্য সূচকের উত্থানে। সূচকের সঙ্গে টাকার অংকে লেনদেনও বেড়েছে।

সোমবার ডিএসইতে ৭২৭ কোটি ৩৮ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। আগের দিন লেনদেন হয় ৬৬২ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২৫৯ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক ১ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৬১ পয়েন্টে এবং ডিএস৩০ সূচক দশমিক ১৩ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২২৫ পয়েন্ট।

সোমবার ডিএসইতে ৩৪৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়। এর মধ্যে দর বেড়েছে ১০০টির, কমেছে ৬৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭৮টির।

অপর বাজার চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ১২ লাখ টাকার শেয়ার।

আরও পড়ুন:
ডিএসইতে নতুন চার স্বতন্ত্র পরিচালক
খরা কাটিয়ে লেনদেন বাড়লেও দরপতন পুঁজিবাজারে
বিমা দাবির ৫ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করল জেনিথ ইসলামী লাইফ
রিলায়েন্স ব্রোকারেজের ট্রেড সাসপেন্ড
লোকসান সত্ত্বেও লভ্যাংশ দেবে প্রিমিয়ার সিমেন্ট

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The chairman of DSE is Dr Hafiz Muhammad

ডিএসই’র চেয়ারম্যান হলেন ড. হাফিজ মুহাম্মদ

ডিএসই’র চেয়ারম্যান হলেন ড. হাফিজ মুহাম্মদ ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু। ছবি: সংগৃহীত
ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত৷ এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলে খণ্ডকালীন সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন৷

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) নতুন চেয়ারম্যান হয়েছেন ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু।

রোববার ডিএসইর ১০৫৪তম বোর্ড সভায় তিনি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন৷

ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি অনুষদের ডিন এবং কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত৷ এছাড়াও তিনি বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচিত সিনেট সদস্য এবং বাংলাদেশ অ্যাক্রেডিটেশন কাউন্সিলে রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিয়োগকৃত খণ্ডকালীন সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন৷

অধ্যাপক হাসান বাবু বর্তমানে আন্তর্জাতিক ইন্টারনেট সোসাইটির বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের সভাপতি। তিনি প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি টাস্কফোর্সের সম্মানিত সদস্য ছিলেন৷

এর আগে ২০ ফেব্রুয়ারি বিএসইসি চার ব্যক্তিকে ডিএসই’র স্বতন্ত্র পরিচালক হিসেবে অনুমোদন দেয়। তারা হলেন- ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু, অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, মো. আফজাল হোসেন এবং মিসেস রুবাবা দৌলা।

আরও পড়ুন:
ডিএসইতে এটিবির যাত্রা শুরু
‘ডিএসই টাওয়ার এখন ফাইন্যান্সিয়াল হাব’
এমডি নিয়োগে একমাস সময় পেল ডিএসই
ডিএসইসি লেখক সম্মাননা পেলেন নিউজবাংলার সুজন
আবার ডিএসইর পরিচালক হচ্ছেন শাকিল-শাহজাহান

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The first day of the week begins with a bright start

আলো ঝলমলে শুরু সপ্তাহের প্রথম দিন

আলো ঝলমলে শুরু সপ্তাহের প্রথম দিন
ফাইল ছবি
সূত্র জানায়, দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৩৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২৫০ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৬২ পয়েন্টে এবং ডিএসই–৩০ সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ২২৫পয়েন্টে।

দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের প্রথম দিন সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে। সূচকের সঙ্গে বেড়েছে লেনদেনও। তবে কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর।

রোববার ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, দিনশেষে ডিএসই ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৩৬ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২৫০ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ১ হাজার ২৬২ পয়েন্টে এবং ডিএসই–৩০ সূচক ৯ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে ২ হাজার ২২৫পয়েন্টে।

দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৪৩ টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৫২টির, দর কমেছে ১৪টির এবং দর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৭৪টির।

ডিএসইতে ৬৬২ কোটি ৩৬ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। যা আগের কার্যদিবস থেকে ২৩৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকা কম। এর আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪২৭ কোটি ৭২ লাখ টাকার।

অপরদিকে, চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সার্বিক সূচক সিএএসপিআই ১২০ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৮ হাজার ৪০২ পয়েন্টে।

রোববার সিএসইতে ১৪৯ টি প্রতিষ্ঠান লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ১০৮টির দর বেড়েছে, কমেছে ২৭টির এবং ১৪টির দর অপরিবর্তিত রয়েছে। সিএসইতে ১৬ কোটি ৬৩ লাখ ৬০ হাজার টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
পুঁজিবাজারে সুখবর আসছে: বিএসইসি চেয়ারম্যান
আইপিওতে তথ্য গোপনের প্রবণতা রয়েছে: এফআরসি চেয়ারম্যান
মন্দা পুঁজিবাজারে বিও হিসাব কমল ১ লাখ ৭৩ হাজার
পুঁজিবাজার: কাটল হতাশার বছর, আলো ফেরাবে কি ২০২৩
সাড়ে ৮ হাজার কোটি টাকা নগদ লভ্যাংশ বিনিয়োগে আনার উদ্যোগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The stock market ended with a slight decline in the index

সূচকের সামান্য পতনে লেনদেন শেষ পুঁজিবাজারে

সূচকের সামান্য পতনে লেনদেন শেষ পুঁজিবাজারে ফাইল ছবি
সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৪২৭ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। এদিন বুধবারের চেয়ে ২৪ কোটি ৬৮ লাখ টাকা কম লেনদেন হয়েছে। ওইদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ৪৫২ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

সপ্তাহের শেষ কর্মদিবস দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্য সূচকের সামান্য পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। ডিএসইতে টাকার অংকে লেনদেনের পরিমাণও কিছুটা কমেছে।

সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৪২৭ কোটি ৭২ লাখ টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে। এদিন বুধবারের চেয়ে ২৪ কোটি ৬৮ লাখ টাকা কম লেনদেন হয়েছে। ওইদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে ৪৫২ কোটি ৪০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছিল।

বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, ডিএসই প্রধান বা ডিএসইএক্স সূচক দশমিক ৯৪ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৬ হাজার ২১৩ পয়েন্টে। অন্য সূচকগুলোর মধ্যে ডিএসইএস বা শরীয়াহ সূচক দশমিক ৪৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১ হাজার ৩৫৭ পয়েন্টে ও ডিএস৩০ সূচক ২ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ২১৬ পয়েন্টে।

বৃহস্পতিবার ডিএসইতে ৩০৯টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৭২টির, কমেছে ৮৮টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৪৯টির।

এদিকে চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সূচক পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন সিএসইতে ৮ কোটি ১৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

আরও পড়ুন:
খরা কাটিয়ে লেনদেন বাড়লেও দরপতন পুঁজিবাজারে
বিমা দাবির ৫ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করল জেনিথ ইসলামী লাইফ
রিলায়েন্স ব্রোকারেজের ট্রেড সাসপেন্ড
লোকসান সত্ত্বেও লভ্যাংশ দেবে প্রিমিয়ার সিমেন্ট
প্রাক-বাজেট আলোচনায় ৮ দাবি ডিবিএ’র

মন্তব্য

p
উপরে