× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Kader Siddiqui at the hospital for gallbladder operation
hear-news
player
print-icon

গলব্লাডার অপারেশনের জন্য কাদের সিদ্দিকী হাসপাতালে

গলব্লাডার-অপারেশনের-জন্য-কাদের-সিদ্দিকী-হাসপাতালে
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। ফাইল ছবি
কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল সিদ্দিকী জানান, কাদের সিদ্দিকী পেটে ব্যথা নিয়ে মঙ্গলবার গলব্লাডারের পাথর অপসারণের জন্য অধ্যাপক ছয়েফউদ্দিন আহমদের তত্ত্বাবধানে বিএসএমএমইউ’র সার্জারি বিভাগে ভর্তি হন। তিনি সবার দোয়া চেয়েছেন।

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী আবারও হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গত মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি হন। তার দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক প্রিন্সিপাল ইকবাল সিদ্দিকী এ তথ্য জানিয়েছেন।

ইকবাল সিদ্দিকী জানান, কাদের সিদ্দিকী পেটে ব্যথা নিয়ে মঙ্গলবার গলব্লাডারের পাথর অপসারণের জন্য অধ্যাপক ছয়েফউদ্দিন আহমদের তত্ত্বাবধানে বিএসএমএমইউ’র সার্জারি বিভাগে ভর্তি হন। সুস্থতার জন্য তিনি সবার দোয়া চেয়েছেন।

ইতোমধ্যে তার বড় ভাই সাবেক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী, সাবেক তথ্য প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সাইয়িদ, সাবেক শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এহসানুল হক মিলন, গণফোরাম নেতা মোস্তফা মহসিন মন্টু হাসপাতালে বঙ্গবীরকে দেখতে গেছেন।

গত বছরের সেপ্টেম্বরে একই হাসপাতালে কাদের সিদ্দিকীর আলট্রাসনোগ্রাম পরীক্ষায় গলব্লাডারে পাথরের অস্তিত্ব ধরা পড়ে। কিন্তু তখন তার দেহে করোনা শনাক্ত হওয়ায় অপারেশন করা সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Dont go to Korea through the southern border

দক্ষিণ সীমান্ত দিয়ে উ.কোরিয়ায় করোনা

দক্ষিণ সীমান্ত দিয়ে উ.কোরিয়ায় করোনা উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উন। ছবি: এএফপি
দক্ষিণ সীমান্ত এলাকায় আবহাওয়া এবং বেলুনের মাধ্যমে আসা বস্তু থেকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উন। অদ্ভুত কোনো বস্তুর দেখা পেলে সঙ্গে সঙ্গে প্রশাসনকে জানানোর নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

বিদেশি বস্তুর সংস্পর্শে উত্তর কোরিয়ায় করোনা ছড়িয়েছে বলে দাবি করেছে দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম। সংক্রমণ এড়াতে দক্ষিণ সীমান্ত থেকে উড়ে আসতে পারে এমন বস্তুর বিষয়ে সতর্ক থাকতেও নাগরিকদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

কয়েক বছর ধরে দক্ষিণের কর্মীরা লিফলেট এবং মানবিক সাহায্য পাঠাতে সীমান্তের ওপারে বেলুন উড়িয়ে আসছে। উত্তর কোরিয়া কর্তৃপক্ষের সন্দেহ, এসবের কিছু একটাতে করেই উত্তরে ভাইরাস পাঠানো হয়েছে।

এসব অভিযোগ গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়া। তারা জানিয়েছে, ভাইরাস এভাবে ছড়ানোর কোনো আশঙ্কাই নেই।

উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম বলছে, দক্ষিণ কোরিয়ার সীমান্তের কাছে অজ্ঞাত সামগ্রীর সংস্পর্শে এসেছিলেন দুই ব্যক্তি। পরে তাদের করোনা শনাক্ত হয়।

এপ্রিলের শুরুতে ইফো-রিতে একটি পাহাড়ে বস্তুগুলো খুঁজে পাওয়ার পর একজন ১৮ বছর বয়সী সৈনিক এবং পাঁচ বছর বয়সী শিশু ভাইরাসের জন্য ইতিবাচক পরীক্ষা করেছিল, এটি রিপোর্ট করেছে।

এপ্রিলের শুরুতে ১৮ বছরের এক সেনাসদস্য ও পাঁচ বছরের এক শিশুর করোনা শনাক্ত হয়। তারা দাবি করে, ইফো-রির একটি পাহাড়ে কিছু বস্তুর সংস্পর্শে এসেছিলেন তারা। এর পর থেকে দ্রুত গোটা দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়ে।

পরিস্থিতি সামলাতে সীমান্তরেখা, সীমান্ত এলাকায় আবহাওয়া এবং বেলুনের মাধ্যমে আসা বস্তু থেকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উন। অদ্ভুত কোনো বস্তুর দেখা পেলে সঙ্গে সঙ্গে প্রশাসনকে জানানোর নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে।

এপ্রিলের শেষ দিক থেকে উত্তর কোরিয়ার জনগণ এক ধরনের জ্বরে আক্রান্ত হতে থাকে। দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ে গোটা দেশে। সংক্রমণ ঠেকাতে দেশটির ৪৭ লাখ মানুষ এখন লড়াই করছে। কিম জং উন এই প্রাদুর্ভাবকে ‘দেশের সবচেয়ে বড় অশান্তি’ বলে বর্ণনা করেছেন।

আরও পড়ুন:
মহাকাশ থেকে নেয়া উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার ছবি
এবার ট্রেন থেকে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া
স্কুইড গেম দেখায় উত্তর কোরিয়ায় মৃত্যুদণ্ড
ডুবোজাহাজ থেকে উত্তর কোরিয়ার ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র জাপান সাগরে
মাথা দিয়ে ইট ভেঙে, রড বাঁকিয়ে দেখাল উত্তর কোরিয়ার সেনারা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Besides corona identification death is also increasing this time

করোনা শনাক্তের পাশাপাশি এবার বাড়ছে মৃত্যুও

করোনা শনাক্তের পাশাপাশি এবার বাড়ছে মৃত্যুও ফাইল ছবি
মে থেকে করোনা সংক্রমণ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকার প্রবণতা দেখা গেলেও মৃত্যুর দিক থেকে স্বস্তিকর বার্তাই দিচ্ছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। টানা মৃত্যুহীন দিন হয়েছে তিন সপ্তাহেরও বেশি।

চতুর্থ ঢেউয়ে আগের তিন ঢেউয়ের তুলনায় মৃত্যুর হার কম থাকলেও গত দুই দিন ধরে হঠাৎ করেই চিন্তার ভাঁজ তৈরির উপক্রম হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ২৪ ঘণ্টায় চার জনের মৃত্যুর পর শুক্রবার আরও পাঁচ জনের মৃত্যুর তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

করোনার তৃতীয় ঢেউ গত মার্চে নিয়ন্ত্রণে আসার পর শনাক্ত, পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হারের পাশাপাশি কমে আসে মৃত্যুও।

মে থেকে করোনা সংক্রমণ ধীরে ধীরে বাড়তে থাকার প্রবণতা দেখা গেলেও মৃত্যুর দিক থেকে স্বস্তিকর বার্তাই দিচ্ছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। টানা মৃত্যুহীন দিন হয়েছে তিন সপ্তাহেরও বেশি।

গত ১৬ জুন পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর ধীরে ধীরে তা ১০ শতাংশ, এমনকি ১৪ শতাংশ হয়ে যাওয়ার পরও মৃত্যুর সংখ্যা ছিল কমই। কোনো দিন একজন, কোনো দিন শূন্য মৃত্যুর তথ্য দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

তবে গত সপ্তাহ থেকেই এক পেরিয়ে দুই, দুই পেরিয়ে তিন এবং তিন পেরিয়ে চার জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয় ২৪ ঘণ্টায়।

এবার যে পাঁচ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়েছে, সেটি সবশেষ ঘটেছিল গত ১১ মার্চ। সেদিনও পাঁচ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়।

গত ২৪ ঘণ্টার মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে ১ হাজার ৮৯৭ জন। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩১।

টানা চার দিন পর ২৪ ঘণ্টায় রোগীর সংখ্যা দুই হাজারের কম পাওয়া গেছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নতুন পাঁচজনের মৃত্যু নিয়ে দেশে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ২৯ হাজার ১৫৪ জনে। গত ২৪ ঘণ্টায় মারা যাওয়া পাঁচজনের মধ্যে পুরুষ তিনজন এবং নারী দুজন।

বয়স বিবেচনায় ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে মারা গেছেন এক জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে তিনজন এবং ৮১ থেকে ৯০ বছর বয়সসীমার মধ্যে একজন আছেন। মৃতদের সবাই ঢাকার বাসিন্দা।

গত এক দিনে এই সময়ে নতুন আরও ১ হাজার ৮৯৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। টানা চার দিন পর দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দুই হাজারের নিচে এসেছে। এ নিয়ে শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৯ লাখ ৭৫ হাজার ৬৮২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ১৫ দশমিক ৩১ শতাংশ এবং করোনাকালের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ। এ নিয়ে টানা ১৬ দিন নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫ শতাংশের ওপরে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ২৪৮ জন এবং এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৭ হাজার ৭৫৭ জন। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯৬ দশমিক ৫৬ শতাংশ এবং মারা গেছেন ১ দশমিক ৪৮ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
চট্টগ্রামে সাড়ে ৪ মাস পর করোনায় মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
One died in Corona after 4 and a half months in Chittagong

চট্টগ্রামে সাড়ে ৪ মাস পর করোনায় মৃত্যু

চট্টগ্রামে সাড়ে ৪ মাস পর করোনায় মৃত্যু
প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২ জন। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ২৫৮ জন। তাদের মধ্যে ৯২ হাজার ৬৫০ জন মহানগর ও বাকি ৩৪ হাজার ৬০৮ জন উপজেলার বাসিন্দা।’

সাড়ে চার মাস পর চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসে একজনের মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়। এ নিয়ে চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ১ হাজার ৩৬৩ জনে। এদের মধ্যে ৭৩৪ জন মহানগর ও ৬২৯ জন বিভিন্ন উপজেলার বাসিন্দা।

জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রতিবেদনে শুক্রবার এসব তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫২ জন। চট্টগ্রামের ১১টি ল্যাবে ৪৪৫টি নমুনা পরীক্ষা করে এই ফল পাওয়া গেছে। সে হিসাবে আক্রান্তের হার ১১ দশমিক ৬৭ শতাংশ।

‘এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ২৫৮ জন। তাদের মধ্যে ৯২ হাজার ৬৫০ জন মহানগর ও বাকি ৩৪ হাজার ৬০৮ জন উপজেলার বাসিন্দা।’

নতুন আক্রান্ত ৫২ জনের মধ্যে মহানগরের বাসিন্দা ৪৪ জন এবং বিভিন্ন উপজেলার আটজন।

এর আগে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছিল।

আরও পড়ুন:
মসজিদে ফের করোনা বিধিনিষেধ
আবারও ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ নীতিতে সরকার
করোনার চতুর্থ ঢেউ নিশ্চিত প্রায়
শিশুদের টিকা পেতে নিবন্ধনের আহ্বান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর
২৪ ঘণ্টায় দুই হাজার করোনা রোগী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Coronas fourth wave No more lockdown this time

করোনার চতুর্থ ঢেউ: এবার আর লকডাউন নয়

করোনার চতুর্থ ঢেউ: এবার আর লকডাউন নয় করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়া নিশ্চিত হলেও আপাতত কঠোর কোনো অবস্থানে যাচ্ছে না প্রশাসন। জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপরই আপাতত জোর দেয়া হবে। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা ১৫ দিন আগেও অনেক কম ছিল, এক শর নিচে ছিল। এখন অনেক বেড়েছে। আমরা লাগাম টেনে ধরতে চাই। এটা শুধু আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এভাবেই কমানো সম্ভব। সংক্রমণ থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হলো মাস্ক পরা।’

করোনার প্রথম থেকে তৃতীয় ঢেউয়ে প্রতিবার নানা নামে লকডাউনের মতো বিধিনিষেধ দেয়া হলেও অর্থনীতির বিবেচনায় এবার আর সেই পথে হাঁটছে না সরকার।

ভাইরাসটির চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়া নিশ্চিত হলেও আপাতত কঠোর কোনো অবস্থানে যাচ্ছে না প্রশাসন। জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপরই আপাতত জোর দেয়া হবে।

সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা বলছেন, এর আগে দুইবার কঠোর বিধিনিষেধের কারণে অর্থনীতির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। সে সময় মানুষের মৃত্যুর হার ও আক্রান্তদের মধ্যে জটিলতা ছিল বেশি। সে কারণে অর্থনীতির সেই ক্ষতি মেনে নিতে হয়েছে। কিন্তু এবারের পরিস্থিতি ভিন্ন। রোগী বাড়লেও এবার ভাইরাসটির যে ধরন ছড়াচ্ছে, সেটি রোগীদের মধ্যে জটিলতা তৈরি করছে না সেভাবে। মৃত্যুর হারও কম।

করোনার চতুর্থ ঢেউ: এবার আর লকডাউন নয়

কঠোর কোনো অবস্থানে না গিয়ে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপরই আপাতত জোর দিচ্ছে প্রশাসন। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

তাছাড়া ইউক্রেন যুদ্ধসহ নানা কারণে বিশ্ব অর্থনীতি এখন চাপে। বৈশ্বিক মূল্যস্ফীতির যে সমস্যা, তার বাইরে নয় বাংলাদেশও। নিত্যপণ্যের দাম দিয়েছে লাফ। এর সঙ্গে যোগ হয়েছে শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের মনস্তাত্ত্বিক চাপ। এর মধ্যে দেশের পূর্বাঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যা, উত্তরের কোথাও কোথাও একই সমস্যা। সব মিলিয়ে সাধারণ মানুষের জীবন হয়ে গেছে কঠিন। এই পরিস্থিতিতে অর্থনীতির ক্ষতি হতে পারে, এমন সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে আরও অপেক্ষা করতে চায় সরকার।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা ১৫ দিন আগেও অনেক কম ছিল, এক শর নিচে ছিল। এখন অনেক বেড়েছে। আমরা লাগাম টেনে ধরতে চাই। এটা শুধু আমাদের পক্ষে সম্ভব নয়। জনগণকে এগিয়ে আসতে হবে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। এভাবেই কমানো সম্ভব। সংক্রমণ থেকে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হলো মাস্ক পরা।’

তিনি বলেন, ‘মাঠ পর্যায়ে আমরা নির্দেশ দিয়েছি মাস্ক পরার নিশ্চিত করার জন্য। এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ একটি চিঠিও দিয়েছে। সেখানে আমাদের সুপারিশ থাকে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে মাস্ক পরানো, শাস্তি দিয়ে বা কোনো পেনাল্টি দিয়ে না। আমরা তাদের আহ্বান করব, কারণ তাদের মঙ্গলের জন্যই তো এ কাজটি করি। তারপরেও যদি সরকার দেখে যে এখানে ব্যত্যয় ঘটছে, তাহলে কোনো পদক্ষেপ নিতেই সরকার দ্বিধা করবে না। কারণ, আমাদের দেশকে তো করোনামুক্ত রাখতে হবে, সব সচল রাখতে হবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালও জোর দিচ্ছেন মাস্ক ব্যবহারের ওপর। তিনি বলেন, ‘কোরবানির হাট হোক, মসজিদ হোক, যেকোনো জনসমাগমে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে যে নির্দেশ দিয়েছে সেটি মেনে চলতে হবে।’

করোনা পরিস্থিতির অবনতিতে সব সরকারি চাকরিজীবীদের এরই মধ্যে মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করে নির্দেশ জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর বৃহস্পতিবার গত সাড়ে তিন মাসের মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত এক দিনে ভাইরাসটিতে মৃত্যু হয়েছে চারজনের। এর চেয়ে বেশি মৃত্যু হয় গত ১১ মার্চ। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় পাঁচজনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়।

করোনার চতুর্থ ঢেউ: এবার আর লকডাউন নয়

সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও ভ্রুক্ষেপ নেই সাধারণের। মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

এ নিয়ে ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ২৯ হাজার ১৪৯ জন।

করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর গত ১৬ জুন প্রথমবারের মতো পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ শতাংশ ছাড়ায়। টানা ১৪ দিন ৫ শতাংশের বেশি শনাক্তের হার পাওয়া যাওয়ার পর দেশে চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় শনাক্তের হার পরপর দুই সপ্তাহ ৫ শতাংশের বেশি হলে পরবর্তী ঢেউ ছড়িয়েছে বলে ধরা হবে। সেই হিসাবে দেশে এখন করোনার চতুর্থ ঢেউ চলছে।

কঠোর ব্যবস্থা ছিল আগের ঢেউগুলোতে

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর ধীরে ধীরে সংক্রমণ বাড়তে থাকে।

ওই মাসের ২৫ তারিখে সরকার সাধারণ ছুটি নাম দিয়ে অফিস আদালত, যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। টানা ৬৬ দিন চালু থাকে এই ব্যবস্থা।

প্রথম ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে। একই বছরের মার্চে ডেল্টা ধরনের করোনায় আসে দ্বিতীয় ঢেউ। তবে ওই মাসের শেষ থেকে সংক্রমণ আবার বাড়তে থাকে।

করোনার চতুর্থ ঢেউ: এবার আর লকডাউন নয়

মাস্ক ব্যবহারের বিষয়ে জনগণের উদাসীনতা চলতে থাকলে করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

এর মধ্যে ভারতে করোনার এই ধরনটি ব্যাপক প্রাণহানির কারণ হতে থাকে। আর দেশেও ভাইরাসটির উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়ার পর ৫ এপ্রিল দেশ যায় বিধিনিষেধে। শুরুতে মন্ত্রীরা লকডাউনের কথা বললেও পরে লিখিত আদেশে ‘কঠোর বিধিনিষেধ’-এর কথা বলা হয়।

এই বিধিনিষেধ পরে ধাপে ধাপে শিথিল করা হয়। তবে এর মধ্যে করোনা পরিস্থিতির ব্যাপক অবনতি হয় জুলাইয়ে। একপর্যায়ে শনাক্তের হার ৩৩ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

সে সময় বিধিনিষেধ আরও কঠোর করা হয়। মন্ত্রীরা শুরুতে বিধিনিষেধকে ‘শাটডাউন’ বলে আখ্যা দেন। জনগণকে ঘরে রাখতে মোতায়েন করা হয় সেনাবাহিনীও। পরে ধাপে ধাপে শাটডাউন শিথিল হতে হতে আগস্টের শেষে তা তুলে নেয়া হয়।

২০২০ সালের মার্চে বন্ধ করে দেয়া স্কুল-কলেজ তখনও খোলেনি। শাটডাউন তুলে নেয়ার পর সেপ্টেম্বর থেকে ধাপে ধাপে সশরীরে ক্লাস শুরু হতে থাকে শিক্ষাঙ্গনে।

একপর্যায়ে নিয়ন্ত্রণে চলে আসে করোনার দ্বিতীয় ঢেউও। কিন্তু পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকেনি খুব বেশি। চলতি বছরের শুরুতে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন নিয়ে আসে তৃতীয় ঢেউ।

তৃতীয় ঢেউয়ের ২৮ জানুয়ারি করোনা শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ দাঁড়ায়, যা দেশে করোনা সংক্রমণ ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি।

তবে তৃতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত বেশি হলেও মৃত্যু ছিল তুলনামূলক কম। আর আগের দুই ঢেউয়ের মতো এবার সরকার অতটা কঠোর সিদ্ধান্তে যায়নি। তবে অর্ধেক জনবলে অফিস করার পাশাপাশি টিকা কার্যক্রমের ওপর জোর দেয়া হয়।

করোনার এই ঢেউ দ্রুত নিয়ন্ত্রণেও আসে। গত ১১ মার্চ তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মাস্ক পরা ছাড়া করোনাসংক্রান্ত সব বিধিনিষেধ তুলে দেয়া হয়। তবে জনগণের মধ্যে মাস্ক পরা নিয়ে অনীহার বিষয়টি আবার দেখা যায়। করোনা সংক্রমণ ক্রমেই বাড়তে থাকলেও এ বিষয়ে সচেতনতার অভাবের বিষয়টি এখনও স্পষ্ট।

গত ১৬ জুন পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার আবার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর স্পষ্ট হতে থাকে করোনার আরও একটি ঢেউ আসছে। প্রায় প্রতিদিনই শনাক্তের হার ও শনাক্তের সংখ্যা আগের দিনকে ছাড়িয়ে এখন দিনে শনাক্ত ছাড়িয়েছে দুই হাজার।

তবে এবার মৃত্যুর সংখ্যা তৃতীয় ঢেউয়ের চেয়ে কম। গত সাড়ে তিন মাসে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে ৪ জন, যা দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় একপর্যায়ে ২০০ ছাড়িয়ে গিয়েছিল।

চতুর্থ ঢেউয়ে মানুষের মধ্যে উদ্বেগ কম থাকার বিষয়টিও স্পষ্ট। সরকার আবার ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’ নীতিতে ফিরলেও মানুষ খুব একটা উৎসাহ দিচ্ছে না। আর সরকার এবার আগের মতো মাস্ক নিয়ে কোনো অভিযান চালাচ্ছে না।

আরও পড়ুন:
ব্যাংকে আবারও ‘নো মাস্ক, নো সার্ভিস’
করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে সাড়ে তিন মাসের সর্বোচ্চ মৃত্যু
করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা
করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে বাংলাদেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The fourth wave of corona is the highest death in three and a half months

করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে সাড়ে তিন মাসের সর্বোচ্চ মৃত্যু

করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে সাড়ে তিন মাসের সর্বোচ্চ মৃত্যু
২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ১৩ হাজার ৯০৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ২ হাজার ১৮৩ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে টানা চার দিন শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের ওপরে থাকল। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে চারজনের। এর চেয়ে বেশি পাঁচজনের মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায় গত ১১ মার্চ।

দেশে করোনার চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়া নিশ্চিত হওয়ার পরদিন সাড়ে তিন মাসের মধ্যে ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর তথ্য জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত এক দিনে ভাইরাসটিতে মৃত্যু হয়েছে চারজনের। এর চেয় বেশি মৃত্যু হয় গত ১১ মার্চ। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় পাঁচজনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়।

এ নিয়ে ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত মারা গেছে ২৯ হাজার ১৪৯ জন।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ১৩ হাজার ৯০৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ২ হাজার ১৮৩ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

এ নিয়ে টানা চার দিন শনাক্তের সংখ্যা দুই হাজারের ওপরে থাকল। এর আগের দিন শনাক্ত ছিল ২ হাজার ২৮১ জন। মঙ্গলবার এই সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৮৬ জন। সোমবার ২ হাজার ১০১ জনের সংবাদ দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার পাওয়া গেছে ১৫ দশমিক ৭০ শতাংশ। এ নিয়ে টানা ১৫ দিন পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ শতাংশের বেশি পাওয়া গেল।

করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর গত ১৬ জুন প্রথমবারের মতো পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ শতাংশ ছাড়ায়। টানা ১৪ দিন ৫ শতাংশের বেশি শনাক্তের হার পাওয়া যাওয়ার পর দেশে চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী, করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থাকা অবস্থায় শনাক্তের হার পরপর দুই সপ্তাহ ৫ শতাংশের বেশি হলে পরবর্তী ঢেউ ছড়িয়েছে বলে ধরা হবে। সেই হিসাবে দেশে এখন করোনা চতুর্থ ঢেউ চলে।

করোনার আগের তিনটি ঢেউয়ের মতো এবারও করোনার হটস্পট ঢাকা। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্তের মধ্যে ১ হাজার ৭২৮ জনই এই জেলার।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত দেশে মোট রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৯ লাখ ৭৩ হাজার ৭৮৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের চারজনের তিনজন পুরুষ, অন্যজন নারী।

এদের মধ্যে দুজন চট্টগ্রামের বাসিন্দা। ঢাকা ও রাজশাহীতে আছেন একজন করে। এদের সবাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন আরও ২৯০ জন রোগী। আক্রান্ত হয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৭ হাজার ৬০৭ জন।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণের পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে গত ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ নিয়ন্ত্রণে আসে। পরের তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতি ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে সংক্রমণ।

আরও পড়ুন:
শিশুদের টিকা পেতে নিবন্ধনের আহ্বান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর
২৪ ঘণ্টায় দুই হাজার করোনা রোগী
এবার ৫ বছর থেকেই করোনার টিকা
সুপ্রিম কোর্টের ১২ বিচারকের করোনা
চতুর্থ ঢেউয়ের দোরগোড়ায় দেশ, আরও বাড়ল করোনা রোগী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The fourth wave of the corona is also reluctant to mask

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা
করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা থেকে বাঁচতে সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। ইতোমধ্যে সরকার একটি নির্দেশনা দিয়েছে, তবে তার বাস্তবায়ন চোখে পড়েনি। নো মাস্ক, নো সার্ভিস নির্দেশনা বাস্তবায়নে সরকাকে উদ্যোগী হতে হবে। একই সঙ্গে জনগণকে সচেতন হতে হবে।’

করোনাভাইরাসের চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার আগে আগে সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও ভ্রুক্ষেপ নেই সাধারণের। মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই।

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু নির্দেশনা দিলেই এই পরিস্থিতির পরিবর্তন আসবে না। এই নীতি বাস্তবায়নে প্রশাসনকে মাঠে থাকতে হবে।

গত ১৬ জুন থেকে প্রতি দিনই পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার টানা ১৪ দিন ৫ শতাংশের বেশি হওয়ায় এরই মধ্যে বাংলাদেশের করোনার চতুর্থ ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

যেদিন চতুর্থ ঢেউয়ের বিষয়টি নিশ্চিত হয়, তার আগের দিন মঙ্গলবার সরকারের পক্ষ থেকে যে নির্দেশনা দেয়া হয়, তাতে ধর্মীয় প্রার্থনার স্থান, শপিং মল, বাজার, হোটেল-রেস্টুরেন্টে সবাইকে বাধ্যতামূলকভাবে মাস্ক পরতে হবে। মাস্ক না পরলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

সরকার আবার ‘নো মাস্ক নো সার্ভিস’ নীতি ঘোষণা করলেও ভ্রুক্ষেপ নেই সাধারণের। মাস্ক পরছে খুব কমসংখ্যক মানুষই। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

তবে বুধবার রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের কোনো নমুনা চোখে পড়েনি। নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাউকে মাঠেই পাওয়া যায়নি।

এটাও ঠিক, প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ে করোনা যতটা প্রাণঘাতী ছিল, তৃতীয় ঢেউয়ে ছিল না ততটা। চতুর্থ ঢেউ যেদিন নিশ্চিত হয়, সেদিনসহ পর পর তিন দিন রোগী পাওয়া গেছে দুই হাজারের বেশি। তবে এই রোগীদের মধ্যে জটিলতা কম। হাসপাতালে চাপ কম, রোগীর মৃত্যুও প্রথম তিন ঢেউয়ের তুলনায় অনেক কম।

চতুর্থ ঢেউ নিশ্চিত হওয়ার দিন দুই হাজারের বেশি মানুষের দেহে করোনা শনাক্ত হলেও ২৪ ঘণ্টায় শূন্য মৃত্যুর স্বস্তিদায়ক তথ্যও জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

তবে জনগণের এমন উদাসীনতা চলতে থাকলে করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।

রাজধানীর নিউ ইস্কাটনে প্রভাতী উচ্চ বিদ্যানিকেতন ও ইস্পাহানী গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ ঘুরে ছাত্রীদের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি বললেই চলে।

ইস্পাহানীর দশম শ্রেণির ছাত্রী তাহমিনা বিনতে রশিদ বলে, ‘এখন তো করোনা কমে গেছে। আর আমার করোনার টিকাও দেয়া হয়েছে, তাই মাস্ক তেমন একটা পরা হয় না।’

প্রভাতীর সপ্তম শ্রেণির ছাত্র মারুফ হোসাইন বলে, ‘টিকা দেয়ার পর এখন আর করোনাকে ভয় পাই না। তাই সব সময় মাস্ক পরা হয় না।’

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

মাস্ক পরার বিষয়ে জনগণের এমন উদাসীনতা চলতে থাকলে করোনা পরিস্থিতির অবনতির আশঙ্কা করছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ‘বাহন পরিবহনে’ উঠে দেখা যায় অধিকাংশের মুখে মাস্ক নেই। এ বিষয়ে কাউকে চিন্তিতও দেখা গেল না।

মাস্ক না পরার কারণ জানতে চাইলে একজন যাত্রী মুখ ভেংচিয়ে বলেন, ‘এমনি’।

করোনা বাড়ছে বলার পর তিনি বলেন, ‘মাস্ক পরলে গরম লাগে।’

এটুকু বলেই মুখ উল্টোদিকে ঘুরিয়ে নিলেন।

একটি পরিবহন সার্ভিসের টিকিট কালেক্টর মোহাম্মদ তাওহীদ বলেন, ‘মানুষ বেশির ভাগই তো দেখি মাস্ক পরে না।’

তাওহীদ নিজেও মাস্ক পরেননি। বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বলেন, ‘আমার মাস্ক পরার সময় নাই। আগে কাজ করতে হবে।’

করোনা নিয়ন্ত্রণে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা থেকে বাঁচতে সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। ইতোমধ্যে সরকার একটি নির্দেশনা দিয়েছে, তবে তার বাস্তবায়ন চোখে পড়েনি। নো মাস্ক, নো সার্ভিস নির্দেশনা বাস্তবায়নে সরকাকে উদ্যোগী হতে হবে। একই সঙ্গে জনগণকে সচেতন হতে হবে।’

করোনার চতুর্থ ঢেউয়েও মাস্কে অনীহা

করোনার সংক্রমণ রোধে মাস্ক পরার বিষয়ে অনেকেরই এমন উদাসীনতা রয়েছে। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআরের উপদেষ্টা ও সাবেক প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোশতাক হোসেনের ধারণা করোনার চতুর্থ ঢেউ এবার বেশিদিন স্থায়ী হবে না।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ওমিক্রনের যে সংক্রমণ আমরা দেখেছি, সেটা দ্রুত সময়ের মধ্যে সংক্রমণ চূড়ায় উঠে আবার দ্রুত নেমে গেছে। করোনার চতুর্থ ঢেউয়ে ওমিক্রনের যে দুটি সাব-ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হয়েছে, এটি আরও দ্রুত সংক্রমিত করতে সক্ষম। আমার ধারণা, এই হার জুলাইয়ের মধ্যে নেমে যাবে।’

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর ধীরে ধীরে সংক্রমণ বাড়তে থাকে। প্রথম ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারিতে। একই বছরের মার্চে ডেল্টা ধরনের করোনায় আসে দ্বিতীয় ঢেউ। এ পর্যায়ে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি তৈরি হয় গত জুলাইয়ে। একপর্যায়ে শনাক্তের হার ৩৩ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।

দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর দেশে তৃতীয় ঢেউ নিয়ে আসে করোনার আরেক ধরন ওমিক্রন। তৃতীয় ঢেউয়ের সময় ২৮ জানুয়ারি করোনা শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৩৭ শতাংশ দাঁড়ায়, যা দেশে করোনা সংক্রমণ ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি। তবে তৃতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত বেশি হলেও মৃত্যু ছিল তুলনামূলক কম। এই ঢেউ দ্রুত নিয়ন্ত্রণেও আসে। গত ১১ মার্চ তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হয়।

তৃতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর মাস্ক পরা ছাড়া করোনাসংক্রান্ত সব বিধিনিষেধ তুলে দেয়া হয়। তবে জনগণের মধ্যে মাস্ক পরা নিয়ে অনীহার বিষয়টি আবার দেখা যায়।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Cataract patients are increasing by more than 1 lakh in the country every year

দেশে বছরে ছানি রোগী বাড়ছে ১ লাখের বেশি

দেশে বছরে ছানি রোগী বাড়ছে ১ লাখের বেশি
‘চোখের ছানিজনিত অন্ধত্ব হলো সারা বিশ্বে প্রতিরোধযোগ্য অন্ধত্বের এক নম্বর কারণ। এটি প্রতিরোধে সচেতনতার ওপর জোর দেয়ার বিকল্প নেই।’

চোখের ছানিজনিত অন্ধত্ব প্রতিরোধযোগ্য। বর্তমানে দেশে পাঁচ লাখের বেশি ছানি রোগী রয়েছে। এসব রোগীর ৮০ ভাগই বাস করে গ্রামে। আর তাদের সিংহভাগই চিকিৎসার বাইরে থেকে যাচ্ছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) বুধবার দুপুরে আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে এসব তথ্য তুলে ধরেন চক্ষু চিকিৎসকরা।

চোখের ছানি সচেতনতা মাস উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ সোসাইটি অফ ক্যাটার‍্যাক্ট অ্যান্ড রিফ্ল্যাকটিভ সার্জনস (বিএসসিআরএস)।

সভায় বক্তারা জানান, চোখের ছানিজনিত অন্ধত্ব হলো সারা বিশ্বে প্রতিরোধযোগ্য অন্ধত্বের এক নম্বর কারণ। এটি প্রতিরোধে সচেতনতার ওপর জোর দেয়ার বিকল্প নেই।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। তিনি বলেন, ‘একটা সময়ে অনেকেই চোখের ছানি অপারেশন করতে ভয় পেত। সেই ভয় অনেকটা দূর হয়ে গেছে। তবে চোখের রোগ নিয়ে সবার মাঝে সচেতনতা আরো বাড়াতে হবে।’

বিএসএমএমইউ-এর উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শরফুদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘দেশে স্বাস্থ্য সেবায় চিকিৎসকসহ দক্ষ জনবল প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম। আমাদেরকে বেশি বেশি চিকিৎসক তৈরি করতে হবে। শুধু চক্ষু চিকিৎসক নয়, তাদের সার্জারি বিষয়েও জ্ঞান থাকতে হবে।

‘২০৩২ সালের মধ্যে দেশে ৩ হাজার ২০০ জন চক্ষু চিকিৎসকের প্রয়োজন পড়বে। এখন আছেন মাত্র ১ হাজার ৪০০।’

বিএসসিআরএসের বৈজ্ঞানিক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এম নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে দেশে ৫ লাখের বেশি ছানি রোগী রয়েছে। প্রতি বছর নতুন করে ১ লাখ ৩০ হাজার রোগী যোগ হচ্ছে। এর মধ্যে এক লাখ রোগী সেবা পাচ্ছেন। বিশেষজ্ঞ ছানি সার্জনের অভাবে সব রোগীকে চিকিৎসার আওতায় আনা সম্ভব হচ্ছে না।’

বিএসসিআরএস সভাপতি অধ্যাপক ডা. জাফর খালেদের সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএসসিআরএসের মহাসচিব অধ্যাপক ডা. মো. মোস্তাক আহমেদ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ছানি সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, ডা. আব্দুর রকিব তুষার, ডা. মো. শওকত কবির প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
দেশে চালু হচ্ছে সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল
বড় ক্ষতি হবার আগেই বঙ্গবন্ধু মেডিক্যালের আগুন নিয়ন্ত্রণে
বিএসএমএমইউতে লিভার প্রতিস্থাপন শিগগির
বিএসএমএমইউতে পেট থেকে ১০ কেজির টিউমার অপসারণ
দেশের সব মেডিক্যালে রিউমাটোলজি বিভাগ চালুর দাবি

মন্তব্য

p
উপরে