× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
People will get cheaper medicines
hear-news
player
google_news print-icon

‘জনগণ আরও সস্তায় ওষুধ পাবে’

জনগণ-আরও-সস্তায়-ওষুধ-পাবে
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের পরিচালক ও ফার্মেসি অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক আ ব ম ফারুক। ছবি: সংগৃহীত
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের পরিচালক ও ফার্মেসি অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক আ ব ম ফারুক। ওষুধ শিল্পের বর্তমান অবস্থা, সমস্যা, সম্ভানা ও এলডিসি পরবর্তী চ্যালেঞ্জ এবং তা থেকে উত্তরণের উপায় ইত্যাদি বিষয় নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আবু কাওসার।

ওষুধ শিল্পে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার পর দৃষ্টি এখন কাঁচামাল উৎপাদনে। এ জন্য আলাদা শিল্প পার্ক গড়ে তোলার উদ্যোগ চরছে।

দেশের চহিদার ৯৮ শতাংশ উৎপাদন করলেও কাঁচামাল আমদানি করার কারণে ওষুধের দাম নিয়ন্ত্রণ করা কঠিন। এই শিল্প পার্ক হলে এবং কাঁচামাল দেশেই পাওয়া গেলে ওষুধের দাম কমে আসবে বলে আশা করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আ ব ম ফারুক।

নিউজবাংলাকে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে এই সম্ভাবনার পাশাপাশি ওষুধ খাত নিয়ে তার কিছু পর্যবেক্ষণ ‍উঠে এসেছে।

ওষুধ শিল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে কিছু বলুন।

আ ব ম ফারুক: এক সময় দেশের মোট চাহিদার ৮০ শতাংশ ওষুধ আমদানি হতো। বাকি ২০ শতাংশ উৎপাদন হতো অভ্যন্তরীণ পর্যায়ে। বাজার দখলে ছিল কয়েকটি বহুজাতিক কম্পানির হাতে।

স্বাধীনতার পর বাণিজ্য মন্ত্রণালায়ের অধীনে ছোট একটা ড্রাগ সেকশন ছিল। বঙ্গবন্ধু এটাকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে এনে ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন তৈরি করেন।

তিনি বাংলাদেশ শিল্প ব্যাংক ও বাংলাদেশ শিল্পঋণ সংস্থাকে নির্দেশ দেন কেউ যদি ওষুধ কম্পানি করতে চায়, তাকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টাকা দিতে হবে। বঙ্গবন্ধু বললেন, ‘আমরা পেটেন্ট মানি না।’

১৯৮২ সালে জেনারেল এরশাদ স্থানীয় শিল্পবান্ধব ওষুধ নীতি (ড্রাগ পলিসি) করেছিলেন। এতে বলা হলো: দেশীয় কোম্পানি ওষুধ বানাতে পারবে, সেটা বিদেশিদের বানাতে দেয়া যাবে না। যেগুলো দেশে তৈরি হয়, সেগুলো বিদেশ থেকে আমদানি করা যাবে না। এমন সাহসি সিদ্ধান্তের ফলে দেশীয় কোম্পানিগুলো দাঁড়িয়ে গেল।

ওষুধ শিল্পের ক্রমান্বয়ে বিকাশের ফলে এখন আমাদের মোট চাহিদার ৯৮ শতাংশ ওষুধ দেশেই তৈরি হচ্ছে। দুনিয়ার আর কোনো দেশে স্থানীয় কোম্পানি বার্ষিক চাহিদার ৯৮ শতাংশ ওষুধের জোগান দিতে পারে বলে আমার জানা নেই। শুধু উচ্চ প্রযুক্তিতে তৈরি কিছু ওষুধ বাইরের দেশ থেকে আসে।

ওষুধ শিল্প বিকাশে সরকারের নীতি সহায়তা কি যথেষ্ট বলে আপনি মনে করেন?

আ ব ম ফারুক: বিদ্যমান নীতিমালা খারাপ না। এই শিল্পের প্রধান সমস্যা কাঁচামাল। ওষুধ শিল্পকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করতে হলে কাঁচামাল আমদানি বন্ধ করতে হবে এবং দেশেই তৈরি করতে হবে। সরকার সমস্যাটা বুঝতে পেরেছে। ফলে এপিআই পার্ক করছে। কিন্তু অনেক বছর আগে উদ্যোগ নিলেও এর কাজ শেষ হয়নি এখনও।

এপিআই (ওষুধ শিল্প) পার্কের সুবিধা কী?

আ ব ম ফারুক: এখানে ওষুধের কাঁচামাল তৈরি হবে। এপিআই পার্ককে কেন্দ্র করে পশ্চাদ সংযোগ শিল্পগুলো গড়ে উঠবে। ফলে অর্থনীতি আরও গতিশীল হবে।

এপিআই পার্ক উৎপাদনে গেলে বাইর থেকে কাঁচামাল আনতে হবে না। দেশের ভেতরেই তৈরি হবে। ফলে কোম্পানিগুলো আরও কম খরচে ওষুধ তৈরি করতে পারবে। ভোক্তা কম দামে ওষুধ পাবে। এ ছাড়া আমাদের রপ্তানিও বাড়বে। সব দিকে আমরা লাভবান হবো এপিআই পার্ক হলে।

করোনাকালে দেশের ওষুধ ব্যবসা রমরমা হওয়ার কারণ কী?

আ ব ম ফারুক: এই সময়ে বেক্সিমকো, ইনসেপ্টা, এসকেএফসহ অনেক কোম্পানির কাছ থেকে বিদেশিরা ওষুধ কিনেছে। পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, করোনাকালে বিদেশিরা এ দেশ থেকে ২ হাজার ২০০ কোটি টাকার ওষুধ নিয়েছে। যদি এপিআই পার্ক চালু থাকত, তাহলে আরও বেশি রপ্তানি করা যেত।

বহির্বিশ্বে ওষুধ শিল্পে বাংলাদেশের অবস্থান কেমন?

আ ব ম ফারুক: খুবই ভালো। তার কারণ বাংলাদেশের ওষুধ শিল্পের অবকাঠামো পৃথিবীর অনেক দেশের তুলনায় ভালো। এমনকি প্রতিবেশি দেশ ভারত, নেপাল, মিয়ানমারের চেয়ে অনেক এগিয়ে।

নেপালের ওষুধ শিল্পের অবকাঠামো খুবই দুর্বল। সেখানে ওষুধের কোম্পানি সীমিত। নেপালে অভ্যন্তরীণ বাজারে চাহিদার মাত্র ১৭ শতাংশ পূরণ করে স্থানীয় কোম্পানিগুলো। অবশিষ্ট ওষুধ আমদানি করা হয়।

বাংলাদেশ ৯৮ শতাংশ ওষুধ অভ্যন্তরীণভাবে তৈরি করে। বাকি ২ শতাংশ বাহির থেকে আনা হয়। মিয়ানমারে ওষুধ কোম্পানি আছে মাত্র একটি। সেখানে টেকনিক্যাল লোকের অভাব। ফার্মাসিস্ট নেই। মধ্যপ্রাচ্যের অনেক দেশে পূঁজি আছে। কিন্তু তারা ফ্যাক্টরি করছে না। কারণ পর্যাপ্ত দক্ষ জনবল নেই।

ভারতে ওষুধের অভ্যন্তরীণ উৎপাদন নিয়ে বিভ্রান্তি আছে। তবে ধারণা করা হয়, মোট চাহিদার ৮২ শতাংশ উৎপাদন করা হয় স্থানীয় পর্যায়ে। বাকিটা তারা আমদানি করে। ফলে ওষুধ উৎপাদনের শতকরা হারে বাংলাদেশ এগিয়ে ভারতের চেয়ে।

স্বল্পোন্নত দেশ থেকে বের হয়ে যাবার পর দেশের ওষুধশিল্প কোনো চ্যালঞ্জের মুখে পড়বে কি?

আ ব ম ফারুক: কিছুই হবে না। আমারা যেরকম আছি, সে রকমই থাকব। সমস্যা হতে পারে ২০৩২ সালের পর। এ জন্য আগে থেকেই তৈরি হতে হবে। তা না হলে কপালে দুঃখ আছে। বর্তমানে পেটেন্ট ছাড়ের সুবিধার আওতায় ওষুধ তৈরির ফলে সস্তায় ওষুধ সেবন করতে পারছে জনগণ।
স্বল্পোন্নত দেশ বা এলডিসি হিসেবে বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার কপিরাইট আইন বা মেধাস্বত্ব ছাড়ের সুবিধা ভোগ করছে বাংলাদেশ।

এই সুবিধার আওতায় ওষুধ উৎপাদনে বিদেশি পেটেন্ট ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশকে কোনো রয়ালিটি বা কোনো ধরনের ফি দিতে হয় না। যে কারণে অনেক দেশের তুলনায় সস্তায় ওষুধ তৈরি করতে পারছে বাংলাদেশ।

এই সুবিধা থেমে যেত, যদি ট্রিপস চুক্তি বা মেধাস্বত্ব আইন অনুযায়ী ২০০৫ সাল থেকে আমাদের পেটেন্ট মানতে হতো। এর বিরুদ্ধে ইংল্যান্ড, আমেরিকা, অস্ট্রিয়া ও কোরিয়ায় আন্দোলন হয়েছে। ফলে ২০০০ সালে ‘দোহা ডিক্লারেশন’-এ ২০১৫ সাল পর্যন্ত ছাড় দেয়া হয়।

২০১৫ সালের আগেই এটা নিয়ে আমরা হৈ-চৈ শুরু করলাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাউথ এশিয়ান কনজিউমার ফোরামের সাত দিনব্যাপী সম্মেলনে ট্রিপসের ব্যাপারে আলোচনা হয়। জাতিসংঘে স্মারকলিপি পাঠানো হয়। তৎকালীন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ খুব ভালো ভূমিকা রাখলেন। আমরা ২০৩২ সাল পর্যন্ত পেটেন্ট ছাড় পেয়েছি। এর মধ্যেই আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে।

প্রস্তুতি কীভাবে নিতে হবে?

আ ব ম ফারুক: বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথ অনুসরণ করে ২০৩২ সালের পরও দেশের ওষুধ শিল্পের সুরক্ষায় পেটেন্ট (মেধাস্বত্ব) ছাড়ের সুবিধা অব্যাহত রাখতে হবে। সে অনুযায়ী সরকারকে কাজ করতে হবে। যে সরকারই ক্ষমতায় থাকুক এখান থেকে সরা যাবে না।

আরেকটা কাজ করতে হবে, তা হলো পাবলিক হেলথ বা জনস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য যে সব ওষুধ জরুরি, সেই সব ওষুধের ওপর পেটেন্ট আইন প্রযোজ্য হবে না। এ জন্য সরকারকে একটা অ্যাসেনসিয়াল ড্রাগ লিস্ট বা ‘অত্যাবশ্যকীয়’ ওষুধের তালিকা বানাতে হবে। এখন এটা আছে।

এই তালিকা দুই-তিন বছর পর পর হালনাগাদ করতে হবে। নতুন নতুন ওষুধ তৈরি হচ্ছে। ওই ওষুধ থেকে কোন কোন ওষুধ ‘অত্যাবশ্যকীয়’, তা নির্ধারণ করে তালিকায় যুক্ত করতে হবে। এটা করা খুবই জরুরি।

এ তালিকা না থাকলে পরবর্তীতে পেটেন্ট ছাড়ের সুবিধা পাওয়া যাবে না। বর্তমানে অত্যাবশ্যকীয় তালিকায় ২৮৬টি ওষুধ আছে।

২০৩৩ সালের পর চ্যালেঞ্জ কোথায়?

আ ব ম ফারুক: ধরা যাক, এমন একটা ওষুধ বানানো প্রয়োজন হয়ে পড়ল, যেটা পেটেন্ট ছাড়ের সুবিধা পেল না। তখন কী হবে? ২০৩২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত আমরা পেটেন্টের আওতায় বাইরে থাকব। ফলে এই সময়ে ওষুধ উৎপাদনে কোনো সমস্যা হবে না। কিন্তু ২০৩৩ সাল থেকে যখন পেটেন্ট সুবিধা বাতিল হয়ে যাবে, তখন তো সমস্যা হবে। সে জন্যই বিদ্যমান সুবিধা অব্যাহত রাখতে হবে এবং সে অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে হবে।

সরকারের করণীয় কি?

আ ব ম ফারুক: বাংলাদেশে ওষুধের দাম কম। এটা অব্যাহত রাখতেই হবে। এর জন্য যা যা করা দরকার, সে বিষয়ে প্রস্ততি নিতে হবে এখন থেকেই।

‘অত্যাবশ্যকীয়’ ওষুধের তালিকা হালনাগাদ করতে হবে। করোনার জন্য কিছু নতুন ওষুধ আছে। তালিকায় এগুলো যোগ করতে হবে। তা না হলে পরবর্তীতে করোনার ওষুধ উৎপাদনে সমস্যা দেখা দিবে।

এপিআই পার্কের যাত্রা শুরু হয় ২০০৮ সালে। এত বছর পরও কেন উৎপাদনে যেতে পারল না?

আ ব ম ফারুক: বেসরকারি কোম্পানিগুলো এপিআই-এ অবকাঠামো ঠিকমতো তৈরি করছে না, এটা দুঃখজনক। আমি যা বুঝি, ফিনিশড প্রডাক্ট বানালে যে পরিমাণ লাভ হয়, কাঁচামাল বানালে তা হবে না। আমাদের ৪২টি কোম্পানি, তারা যদি পাঁচটা করেও কাঁচামাল বানায়, তাও তো ২০০ কাঁচামাল হচ্ছে। বিশাল ব্যাপার।

এপিআই হলে ওষুধশিল্পের কাঁচামালের আমদানি নির্ভরতা কমবে। শুধু তা-ই নয়, কাঁচামাল রপ্তানি করা সম্ভব হবে। সময় মতো এপিআই পার্ক না হওয়াটাই ওষুধশিল্পের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ।

ভোক্তা পর্যায়ে ওষুধের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে অরাজকতা চলছে। এর জন্য দায়ী কে?

আ ব ম ফারুক: যে কোনো দেশে অত্যাবশ্যকীয় ওষুধের তালিকায় থাকা ওষুধগুলোর দাম নির্ধারণ করে সরকার। এটাই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম। আমাদের দেশের ১৯৮২ সালের ওষুধ নীতিতেও তা ছিল। কিন্তু ১৯৯৪ সালে ওষুধ কোম্পানির দাবির মুখে বলা হলো, ১৭ শতাংশ ওষুধের দাম সরকার নির্ধারণ করবে, বাকিটা কোম্পানি। এটাকে বলা হলো ইন্ডিকেটিভ প্রাইস। এ রকম আজগুবি নিয়ম দুনিয়ার কোথাও নেই।

২০১৬ সালে আমরা প্রস্তাব দিয়েছিলাম, ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের উদ্যোগে কমিটি গঠন করা হবে, যেখানে ওষুধ কম্পানি, ডাক্তার, ওষুধশিল্প সমিতি, ফার্মাসিস্ট, রোগী এবং যারা ওষুধটা বিক্রি করে তাদের একজন করে প্রতিনিধি থাকবে। সরকারের একজন বা দুজন থাকবে। যেদিন যে কম্পানির ওষুধ নিয়ে আলোচনা হবে, সেদিন সংশ্লিষ্ট কোম্পানির লোক থাকবে না। মিটিংয়ে মূল্য পর্যালোচনা হবে। কাঁচামালের দাম কমা-বাড়ার সঙ্গে ওষুধের দামও কমবে-বাড়বে। এই প্রক্রিয়া বাস্তবায়নের উপায়ও বলে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ওই নিয়ম আর কার্যকর হলো না।

আরও পড়ুন:
ব্যবস্থাপত্রে ওষুধের জেনেরিক নাম লেখার নির্দেশনা বাস্তবায়ন কবে
মানুষ আইলে কাইন্দা ঢং করত: স্ত্রীকে নিয়ে দুই শিশুর বাবা
ওষুধশিল্পে চ্যালেঞ্জ দেখছেন না উদ্যোক্তারা
উত্তরণ-পরবর্তী ওষুধশিল্পের সংকট কোথায়

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Another 568 dengue patients died in hospital 2

আরও ৫৬৮ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে, মৃত্যু ২

আরও ৫৬৮ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে, মৃত্যু ২ হাসপাতালে ডেঙ্গু আক্রান্ত সন্তানের সেবায় মা ও পরিবারের সদস্যরা। ফাইল ছবি
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩৬০ ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ২০৮ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন।

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে আরও ৫৬৮ জন দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। মারা গেছেন দুজন। এ নিয়ে চলতি মৌসুমে ডেঙ্গু আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ জন।

রোববার সকাল পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টার হিসাব দিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এ তথ্য জানিয়েছে।

আগের দিন শনিবার ডেঙ্গু আক্রান্ত ৬৩৫ জন হাসপাতালে ভর্তি হন, যা এ বছরে সর্বোচ্চ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে রোববার জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩৬০ জন রোগী ভর্তি হন। বাকি ২০৮ জন ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বর্তমানে সারা দেশে ২ হাজার ২২১০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৬৬০ জন ও ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোতে ৫৫০ জন চিকিৎসাধীন।

চলতি বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২ অক্টোবর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৭ হাজার ২৯৫ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। তাদের মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১৩ হাজার ১৫৯ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৪ হাজার ১৩৬ জন।

একই সময়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন মোট ১৫ হাজার ২৭ জন। তাদের মধ্যে ঢাকার হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১১ হাজার ৪৭২ জন এবং ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলো থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৩ হাজার ৫৫৫ জন।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড
ডেঙ্গুতে ২ মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ৪৩৭
ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, কমেছে হাসপাতালে ভর্তি
ডেঙ্গু তো আমরাই লালন-পালন করছি: স্বাস্থ্যসচিব
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The image of Rangpur Medical changed after the doctor suffered

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র
এক চিকিৎসকে মাকে ভর্তি করাতে যাওয়ার পর পদে পদে টাকা আর কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়ার পর অন্য চিকিৎসকরা সোচ্চার হন। তাদের হুঁশিয়ারির মুখে কর্তৃপক্ষ হয় তৎপর, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নেয় ব্যবস্থা, বদলি করা হয় ১৭ কর্মচারীকে। চুক্তিভিত্তিক দুই জনকে করা হয় বরখাস্ত। এখন রোগী ভর্তি করতে এলে কাউকে বাড়তি টাকা দিতে হয় না। হাসপাতালের পরিবেশও পরিচ্ছন্ন, ছিমছাম।

২১ সেপ্টেম্বরের ঘটনা। গাইবান্ধা সদর উপজেলার বড় দুর্গাপুর গ্রামের বাসিন্দা ইশরাত জাহান ইতি কিডনি রোগে আক্রান্ত মাকে ভর্তি করান রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নেফ্রোলজি বিভাগে। সেদিন জরুরি বিভাগে ভর্তি বাবদ ২০০ টাকা, ট্রলি বাবদ ২৫০ আর বেড পরিষ্কারের জন্য দিতে হয়েছে ৫০ টাকা। কিছুটা সুস্থ হয়ে মাকে নিয়ে বাড়ি ফিরে যান তিনি।

ঠিক ১০ দিন পর ১ অক্টোবর দুপুরে মাকে নিয়ে ফের হাসপাতালে আসেন ইতি। কিন্তু জরুরি বিভাগে এবার ট্রলির জন্য টাকা চায়নি কেউ, ভর্তি বাবদ ২০০ টাকার বদলে লেগেছে ২৫ টাকা। শয্যা পরিষ্কারের জন্যও কেউ টাকা চেয়ে বিরক্ত করেনি।

হাসপাতালে এমন পরিবর্তন দেখে নিজেই বিশ্বাস করতে পারছিলেন না ইতি। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘মার দুই কিডনিতেই পাথর ছিল। এর আগে একটার চিকিৎসা করা হয়েছে। এবার অন্যটির চিকিৎসার জন্য ভর্তি করলাম। কিন্তু কেউ আমার কাছে টাকা চায়নি। ভর্তি বাবদ ২৫ টাকা নিয়েছে, রিসিটও দিয়েছে। আমি প্রথমে বুঝতে পারিনি প্রশাসন এখন এত শক্ত।’

ইতির কাছ থেকে বাড়তি টাকা আদায় বন্ধ হয়েছে এই হাসপাতালেরই এক চিকিৎসক তার মাকে ভর্তি করে এসে ভুক্তভোগী হওয়ার পর। সেই চিকিৎসকের কাছ থেকেও পদে পদে আদায় করা হয়েছে বাড়তি টাকা। পরিস্থিতি এমন ছিল যে, নিজের কর্মস্থল থেকে মাকে তিনি নিয়ে গেছেন এই ভয়ে যে, এখানে থাকলে তার মায়ের চিকিৎসা হবে না।

সেই চিকিৎসক হাসপাতাল পরিচালকের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তোলপাড় হয়ে যায়। এতদিন সব দেখেও না দেখার ভান করা কর্তৃপক্ষ আর বসে থাকেনি। চিকিৎসক ভোগার পর তারা ব্যবস্থা নেয়ায় আমূল পাল্টে গেছে হাসপাতালের চিত্র। এখন দালালের অত্যাচার নেই, রোগী ভর্তির সঙ্গে সঙ্গে ট্রলি ধরার প্রতিযোগিতা নেই, স্বজনের কাছে বকশিশ চাওয়ার অত্যাচার নেই, নির্ধারিত ভর্তি ফির বাইরে কোনো টাকা দিতে হচ্ছে না।

নোংরা পরিবেশের যে সমস্যায় এতকাল মানুষ ভুগেছে, সেটিও আর নেই। হাসপাতালের ওয়ার্ড, মেঝেতে নেই ময়লা-আবর্জনা। পুরো হাসপাতাল এখন ঝকঝকে চকচকে।

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

পরিস্থিতির এই চিত্র দেখে বিশ্বাস হচ্ছে না রোগী ও তার স্বজনদের। এদের একজন কুড়িগ্রামের উলিপুরের চাচিনা বেগম। গত চার দিন থেকে হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগে ছোট ভাইয়ের অসুস্থ স্ত্রীর সঙ্গে আছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘এর আগেও হাসপাতালে ছিলাম আমি। কিন্তু এত ভালো ব্যবহার কেউ করেনি। ডাক্তার, নার্স ও আয়া সবাই যেন বাড়ির লোক। কেউ কখনও খারাপ ব্যবহার করেনি। ভর্তির সময় কেউ কোনো টাকা-পয়সা চায় নাই। শুনছি এদিক-সেদিক টাকা নেয়। কিন্তু কেউ চায় নাই।’

পরিবর্তনের নেপথ্যে

গত ১৭ সেপ্টেম্বর মায়ের চিকিৎসা করাতে অর্থোসার্জারি বিভাগের চিকিৎসক এ বি এম রাশেদুল আমীরের মাকে ভর্তি করানো হয়।

হাসপাতালে ভর্তি ফি ২৫ টাকা হলেও ১০ গুণ ২৫০ টাকা চাওয়া হয়। স্বজনরা চিকিৎসকের পরিচয় জানালে তো নেমে আসে ৫০ টাকায়, তবু তা ছিল নির্ধারিত ফির দ্বিগুণ।

ভর্তির পর রোগীকে করোনারি কেয়ার ইউনিট বা সিসিইউতে পাঠানো হলে সেখানেও দিতে হয় ২০০ টাকা। সেখানে স্বজনরা চিকিৎসকের পরিচয় দেয়ার পর তাদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হয়।

এর মধ্যে সেই চিকিৎসক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ভিডিও করেন। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমার মাকে ভর্তি করা থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্টেপে টাকার জন্য চাপ দেয়া হয়েছে। ওই কর্মচারী নিজে মাসুদ নামে পরিচয় দেয়। আমি বিষয়টি একসময় ভিডিও করি। সেটি আমার ফেসবুকে পোস্ট করি।’

পরে সেই ভিডিও ফেসবুক থেকে ডিলিট করে দেন চিকিৎসক রাশেদুল আর লিখিত অভিযোগ দেন হাসপাতাল পরিচালকের কাছে।

এসব ঘটনায় যে হাসপাতালে নিজে চাকরি করেন, সেখানে মায়ের চিকিৎসা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে রিলিজ নিয়ে নেন তিনি। রোগী নিয়ে আসার সময় আবার চাওয়া হয়েছে টাকা, এবার আরও বেশি।

নিউজবাংলাকে রাশেদুল বলেন, ‘হয়তো আমার অভিযোগ অনেকে নানাভাবে নিতে পারে। সর্বশেষ গতকাল সোমবার যখন আমার মাকে হাসপাতাল থেকে রিলিজ নিয়ে চলে আসি তখনও ময়লা পরিষ্কার বাবদ আমার কাছে ৩ হাজার টাকা চাওয়া হয়েছে। এটা দুঃখজনক।’

হাসপাতালের এই চিত্র নতুন কোনো কিছু নয়। কিন্তু চিকিৎসকরা ছিলেন নির্বিকার। নিজেদের পেশার একজন ভোগার পর অবশেষে তারা সোচ্চার হন। অব্যবস্থাপনা বন্ধের দাবিতে ২৬ সেপ্টেম্বর আন্দোলনে নামেন ‘সম্মিলিত চিকিৎসক সমাজ’।

এরপর কঠোর হয় মন্ত্রণালয়। গত ২৯ সেপ্টেম্বর রংপুর মেডিক্যালের ১৬ কর্মচারীকে দেশের বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালে বদলি করা হয়। এরপর কর্মচারীদের আচরণে আসে পরিবর্তন।

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

এর পাশাপাশি চিকিৎসক রাশেদুল আমীরের স্বজনদের অশোভন আচরণ ও টাকা নেয়ার দায়ে চুক্তিভিত্তিক দুই কর্মচারী মাসুদ ও ঝর্ণাকে চাকরি থেকে বরখাস্তও করা হয়। এতে চুক্তিভিত্তিক অন্য কর্মচারীদের মধ্যেও ভয় ঢুকেছে।

‘চিকিৎসকরা আগে উদ্যোগী হলে আমাদের ভুগতে হতো না’

হাসপাতালের চিত্র পাল্টানোয় খুশি মাকে ভর্তি করতে এসে হয়রানির শিকার হওয়া চিকিৎসক এ বি এম রাশেদুল আমীর। তিনি জোর দিয়েছেন এই পরিবর্তন ধরে রাখার ওপর।

নিউজবাংলাকে রাশেদুল আমীর বলেন, ‘অ্যাজ এ ম্যান অফ রংপুর, আমি সব সময় চাই রংপুরের মানুষ এখান থেকে সবচেয়ে ভালো সেবা পাক। আমরা রংপুরবাসী যদি সবাই এক হই তাহলে এটা ধরে রাখা যাবে। এই যে বদলে গেছে এটাকে ধরে রাখতে হবে।’

স্বস্তিতে স্বজনরা

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা চান মিয়া বলেন, ‘আমি এক মাস আগেও এখানে ভর্তি ছিলাম। তখন ট্রলিতে টাকা নিয়েছে, ভর্তিতে নিয়েছে। ওয়ার্ডে টাকা নিয়েছে। কিন্তু আইজ আমার ছোট ভাইকে নিয়ে হাসপাতালে আছি। কেউ টাকা চায় নাই।’

গাইবান্ধার নুরুল ইসলাম বলেন, ‘আমি কী বলব আপনাদের? দেখেন হাসপাতাল কত পরিষ্কার। কোথাও কোনো কাগজটাগজ নাই। ময়লা নাই, বাদামের খোল্ডা (খোসা) নাই। বিচনে (বেড) রুম সব পরিষ্কার। নিচতলা থেকে ওপরতলা কেউ টাকাটোকা চাইছে না। এমন পরিবেশ থাকলে তো ভালো হয়।’

কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছের বাসিন্দা বেলায়েত হোসেন লিটু সরকার বলেন, ‘আমার ভাই হৃদরোগে আক্রান্ত ছিল। ছিল সিসিইউতে। এখনকার পরিবেশ অনেক ভালো। এবার সেবা অনেক ভালো পাইছি।’

রাশেদুল মনির নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘আগেই এই হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা নিয়ে বহু অভিযোগ ছিল। তখন কোনো চিকিৎসকই এভাবে প্রতিবাদ করে এগিয়ে আসেনি। যদি এভাবে চিকিৎসকরা এগিয়ে আসত, তাহলে এই হাসপাতাল বহু আগেই দালালমুক্ত হতো। মানুষ এত হয়রানি হতো না।’

কর্তৃপক্ষ যা বলছে

রংপুর মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ বিমল চন্দ্র রায় জানান, ‘আমাদের আন্দোলনের কারণে এমনটা হয়েছে কি না, জানি না। আমরা চাই এই হাসপাতালে এসে কেউ যেন হয়রানির শিকার না হন। যে স্টেপটা নেয়া হয়েছে তাতে যেন হাসপাতালটা ভালো চলে- এই কারণে এই উদ্যোগ। এখন সবাই হেল্প করতেছে- এটা যেন অব্যাহত থাকে। তাহলে মানুষের আস্থার জায়গা থাকবে।'

ডাক্তার ভোগার পর পাল্টাল রংপুর মেডিক্যালের চিত্র

হাসপাতালের পরিচালক শরীফুল হাসান বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে পরিকল্পনা নিচ্ছি। উন্নয়নের চাবিকাঠি হলো পরিকল্পনা। এটা আমার অবদান তা কিন্তু নয়। আমি চেষ্টা করছি মাত্র।’

তিনি বলেন, ‘আমরা একটি সিস্টেম ডেভেলপ করতে চেয়েছি, সেটি করছি। আমরা দেখছি জরুরি বিভাগে সমস্যা আছে, সেখানে ব্যবস্থা নিয়েছি। নিয়মতান্ত্রিকভাবে এখন সব চলবে।’

তবু অভিযোগ অস্বীকার কর্মচারীদের

হাসপাতালের চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারী মো. বাদল জানান, ‘আমরা সরকারি কর্মচারীরা কখনও টাকা নেই নাই। আমাদের কর্তব্য আমরা করতেছি, ট্রলি ঠেলতেছি। এখন দালালটালাল নেই। কাউকে টাকা দেয়া লাগে না।’

আপনারা থাকতে টাকা কীভাবে নিয়েছে জানতে চাইলে বাদল বলেন, ‘ওরা আউটসোর্সিংয়ের কর্মী ছিল। যে যার মতো করে নিত। আমাদের উপস্থিতিতে নিত না।’

নাম প্রকাশ না করে একজন নার্স বলেন, ‘আপনি নিজেই দেখেন সিট কত আর ভর্তি কত। একবার রাউন্ডে গেলে কতজন রোগীর কাছে যেতে কত সময় লাগে। কিন্তু অনেক রোগী চায় ডাকা মাত্রই তাদের কাছে যেতে হবে। কিন্তু যার কাছে আছি বা যে রোগীর কাছে আছি তিনি কী অপরাধ করলেন? মূলত ভুল বোঝার কারণে তারা অভিযোগগুলো করে।’

আরও পড়ুন:
নিজ হাসপাতালে চিকিৎসকের হয়রানিতে ১৬ কর্মচারীকে বদলি
হাসপাতালের অনিয়ম পাল্টায়নি এতটুকু
নিজ হাসপাতালে হয়রানির শিকার হয়ে বিস্মিত চিকিৎসক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
635 dengue patients admitted to hospital in one day

এক দিনে ৬৩৫ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে 

এক দিনে ৬৩৫ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে  ডেঙ্গু আক্রান্ত সন্তানকে নিয়ে হাসপাতালে এক মা। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির সংখ্যা এখন ২ হাজার ১৫৮ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৫০টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ১ হাজার ৬৫৮ জন এবং বিভিন্ন জেলার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫০০ জন।

চলতি বছরে এক দিনে সবচেয়ে বেশি রোগী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে শনিবার। সারা দেশে এ সময় ৬৩৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

এ নিয়ে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির সংখ্যা এখন ২ হাজার ১৫৮ জন। এর মধ্যে ঢাকার ৫০টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি আছে ১ হাজার ৬৫৮ জন এবং বিভিন্ন জেলার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫০০ জন।

ডেঙ্গু নিরসনে সিটি করপোরেশনের সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। তারপরও বাড়ছে রোগীর সংখ্যা।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জোবায়দুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা ডেঙ্গু নিরসনে কাজ করছি। পরিস্থিতি এখনো আমাদের নিয়ন্ত্রণে আছে।’

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের মধ্যেই কীভাবে এক দিনে এতো রোগী পাওয়া গেল এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘অবশ্যই পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। এমন তো নয় যে লাগামহীনভাবে বেড়েছে। একদিনে বেড়েছে বলে অস্থিরতা বাড়ানো যাবে না। মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড এসব দেশের পরিস্থিতি আরও খারাপ। আমাদেরকে পারিপার্শ্বিকতা বিবেচনা করতে হবে। অক্টোবরের মাঝামাঝিতে আমরা পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসব।’

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের ইমিরেটাস অধ্যাপক এবং প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক এবিএম আবদুল্লাহ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়ার কারণ এবার থেমে থেমে বৃষ্টি হওয়া। যার কারণে পানি জমেছে বেশি।

‘সিটি করপোরেশন বা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাজ ঘরের বাইরে। কিন্তু ঘরে আমাদের সচেতন হতে হবে। বাচ্চারা দিনের বেলায় ঘুমালে মশারি দিতে হবে। পাতলা ফুলহাতা পোশাক এবং মশার কামড় নিরোধক ক্রিম ব্যবহার করতে হবে। আর কোনোভাবেই পানি জমতে দেয়া যাবে না। এতে হয়তো ডেঙ্গু নির্মুল করা সম্ভব নয়, তবে নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক কবিরুল বাশার বলেন, ‘আমরা আগেই বলেছি, আগস্ট-সেপ্টেম্বরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বাড়বে। আমাদের প্রেডিকশন মডেল অনুযায়ী সেটাই হচ্ছে।

‘আমরা হটস্পট ম্যানেজমেন্ট চালু করার কথা বলেছি। হটস্পট ম্যানেজমেন্ট বলতে যেসব হাসপাতালে রোগী ভর্তি আছে, সেখান থেকে রোগীর বাসার ঠিকানা সংগ্রহ করে তাদের বাড়ির আশপাশে ৫০০ গজের মধ্যে ফগিং করে উড়ন্ত মশাগুলোকে মেরে ফেলা। সেটিও পুরোপুরি হচ্ছে না। এটা শুধু ঢাকায় না, যেসব জেলায় ডেঙ্গুর প্রকোপ রয়েছে সবগুলোতেই চালু করতে হবে।’

গত সেপ্টেম্বরে দেশে সর্বমোট ৯ হাজার ৯১১ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। যার মধ্যে মারা গেছে ৩৪ জন রোগী।

আর জানুয়ারি থেকে ১ অক্টোবর পর্যন্ত দেশে ১৬ হাজার ৭২৭ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ হয়েছে ১৪ হাজার ৫১৩ জন রোগী।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গুতে ২ মৃত্যু, হাসপাতালে ভর্তি ৪৩৭
ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, কমেছে হাসপাতালে ভর্তি
ডেঙ্গু তো আমরাই লালন-পালন করছি: স্বাস্থ্যসচিব
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড
চুয়াডাঙ্গায় ৬ ডেঙ্গু রোগী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The rate of detection of five deaths in Corona has dropped to 15

করোনায় পাঁচ মৃত্যু, শনাক্তের হার ১৫ ছাড়াল

করোনায় পাঁচ মৃত্যু, শনাক্তের হার ১৫ ছাড়াল করোনা আক্রান্ত রোগীকে হাসপাতালে নেয়া হচ্ছে। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, শুক্রবার সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা সারা দেশে ৩ হাজার ১২১ নমুনা পরীক্ষায় ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে ৪৮০ জনের দেহে।

করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় পাঁচজনর মৃত্যু হয়েছে। পরীক্ষার বিপরীতে এ সময় শনাক্তের হার ১৫ শতাংশ ছাড়িয়েছে।

শনিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, শুক্রবার সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা সারা দেশে ৩ হাজার ১২১ নমুনা পরীক্ষায় ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে ৪৮০ জনের দেহে।

এতে শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ১৫ দশমিক ২৮ শতাংশে।

করোনার আগের চারটি ঢেউয়ের মতো এবারও রোগী বেশি পাওয়া যাচ্ছে রাজধানীতে। নতুন করে যারা শনাক্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৩৯৭ জনই ঢাকার বাসিন্দা।

২০২০ সালের মার্চে করোনাভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের পর মোট চারটি ঢেউ পাড়ি দিয়ে দেশ এখন পঞ্চম ঢেউয়ে। তবে চতুর্থ ঢেউ থেকেই দেখা যাচ্ছে দেশবাসীর মধ্যে এই ভাইরাস আগের মতো আর আতঙ্ক তৈরি করছে না। আর পঞ্চম ঢেউয়ে মৃত্যু তুলনামূলক কম।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৫ হাজার ৬৭৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৪৪৩ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৫ হাজার ৬৩১ জন মানুষ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হেনেছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় মৃত্যু ২, শনাক্ত ৫৭২
করোনায় ৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৩৫০
করোনায় শনাক্তের হার ছাড়াল ১৫ শতাংশ
করোনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত  ৬৭৮
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে সর্বোচ্চ শনাক্তের হার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
700 corona patients left in 24 hours

২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী ছাড়াল ৭০০

২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী ছাড়াল ৭০০ ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
২০২২ সালের মার্চে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের পর মোট চারটি ঢেউ পাড়ি দিয়ে দেশ এখন পঞ্চম ঢেউয়ে। তবে চতুর্থ ঢেউ থেকেই দেখা যাচ্ছে দেশবাসীর মধ্যে এই ভাইরাস আগের মতো আর আতঙ্ক তৈরি করছে না। আর পঞ্চম ঢেউয়ে মৃত্যু তুলনামূলক কম।

করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৭০০ জন। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ ছুঁইছুঁই। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে একজনের।

শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা সারা দেশে ৪ হাজার ৮২৮ নমুনা পরীক্ষায় ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে ৭০৮ জনের দেহে।

করোনার আগের চারটি ঢেউয়ের মতো এবারও রোগী বেশি পাওয়া যাচ্ছে রাজধানীতে। নতুন করে যারা শনাক্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৫১৬ জনই দেশের প্রধান শহরের বাসিন্দা।

২০২০ সালের মার্চে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের পর মোট চারটি ঢেউ পাড়ি দিয়ে দেশ এখন পঞ্চম ঢেউয়ে। তবে চতুর্থ ঢেউ থেকেই দেখা যাচ্ছে দেশবাসীর মধ্যে এই ভাইরাস আগের মতো আর আতঙ্ক তৈরি করছে না। আর পঞ্চম ঢেউয়ে মৃত্যু তুলনামূলক কম।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৫ হাজার ১৯৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৬৮৬ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৫ হাজার ১৮৮ মানুষ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হেনেছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায়
করোনায় মৃত্যুহীন দিনে শনাক্ত ৬৬৫
করোনায় ১ মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
22 deaths detected in Corona 669

করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায়

করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায় ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, মৃত ২ জনই পুরুষ। তাদের একজন নেত্রকোণা এবং অন্যজন ময়মনসিংহে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুই মাস পর এই ভাইরাসে মৃত্যু দেখল দেশ। এসময়ে ৫ হাজার ১৭ নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৬৯ জনের; তাদের ৫২১ জনই রাজধানীর বাসিন্দা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার নিয়মিত বিবৃতিতে এসব জানিয়েছে।

শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরও জানায়, মৃত ২ জনই পুরুষ। তাদের একজন নেত্রকোণা এবং অন্যজন ময়মনসিংহ সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

টানা ১৪ দিন ধরে করোনা শনাক্তের হার ৫ শতাংশের ওপরে থাকায়, দেশে পঞ্চম ঢেউ নিশ্চিত হয়েছে। কারণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলা যায়।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৪ হাজার ৪৮৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৩৫৪ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৪ হাজার ৫০১ মানুষ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হেনেছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় শনাক্তের হার ছাড়াল ১৫ শতাংশ
করোনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত  ৬৭৮
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে সর্বোচ্চ শনাক্তের হার
পঞ্চম ঢেউয়ের তৃতীয় দিনে করোনায় ৫ মৃত্যু
পঞ্চম ঢেউয়ের দ্বিতীয় দিনে কমেছে শনাক্তের হার, মৃত্যু ১

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In 24 hours 367 people in Dhaka and 139 people outside Dhaka were admitted to hospital due to dengue

ডেঙ্গুতে শূন্য মৃত্যু, ভর্তি ৫০৬

ডেঙ্গুতে শূন্য মৃত্যু, ভর্তি ৫০৬ দেশে গত বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নেয়া এক রোগী। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ৩৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৩৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে ৫০৬ জন রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছরে এক দিনে এতসংখ্যক রোগী এই প্রথম।

একই সময়ে ডেঙ্গুতে কারও মৃত্যু হয়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। শূন্য মৃত্যু নিয়ে আজও মৃতের সংখ্যা ৫৫ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ৩৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৩৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বর্তমানে সারা দেশে ১ হাজার ৮৭৪ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৪২৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ৪৪৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন।

এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৫ হাজার ৮৫২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১২ হাজার ১৩১ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭২১ জন।

একই সময়ে সারা দেশে ছাড়প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ১৩ হাজার ৯২৩ জন। এর মধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ হাজার ৬৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৩ হাজার ২৪৬ জন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, কমেছে হাসপাতালে ভর্তি
ডেঙ্গু তো আমরাই লালন-পালন করছি: স্বাস্থ্যসচিব
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড
চুয়াডাঙ্গায় ৬ ডেঙ্গু রোগী
নগরে এডিস মশার লার্ভা, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

মন্তব্য

p
উপরে