× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
9 young men from Madaripur are being held hostage in Libya
hear-news
player
print-icon

লিবিয়ায় জিম্মি মাদারীপুরের ৯ যুবক

লিবিয়ায়-জিম্মি-মাদারীপুরের-৯-যুবক
সন্তানের জিম্মির খবরে স্বজনদের আহাজারি। ছবি নিউজবাংলা
ইতালির উদ্দেশ্যে পাড়ি জমানো আকতার শেখের বাবা সুলতান খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার ছেলেকে জিম্মি করে ৯ লাখ টাকা দাবি করছে। এখন আমি এতো টাকা কোথায় পাবো? যে দালালের মাধ্যমে লিবিয়ায় পাঠিয়েছি, তাকেও পাওয়া যাচ্ছে না। এখন আমার ছেলেকে ফেরত আনার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাই। আমার ছেলেকে ফেরত চাই।’

দেড় মাস আগে ইতালি যাওয়ার উদ্দেশ্যে লিবিয়ায় পাড়ি জমান মাদারীপুরের ৯ যুবক। লিবিয়ায় পৌঁছালেও এরপর থেকে তাদের আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ পরিবারের।

তাদের স্বজনরা জানান, লিবিয়ায় ওই যুবকদের জিম্মি করে বাড়িতে ভিডিও কল দিয়ে মুক্তিপণ চাওয়া হয়েছে। টাকা না দিলে তাদের নির্যাতনের হুমকি দিয়েছে জিম্মিকারীরা।

এসব পরিবারের ভাষ্য অনুযায়ী, মুক্তিপণের টাকা দেয়ার সাধ্য তাদের কারও নেই। এ অবস্থায় আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন পরিবারের সদস্যরা। সন্তানদের দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য আকুতি জানিয়েছেন তারা।

পুলিশ বলছে, মামলা করলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওই ৯ যুবক হলেন মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার পশ্চিম বালিগ্রাম গ্রামের মকবুল শেখের ছেলে সাকিব শেখ, জিনু আকনের ছেলে শওকত আকন, সুলতান খানের ছেলে আকতার শেখ, সাহাবুদ্দিন মাতুব্বরের ছেলে সোহাগ মাতুব্বর, সিরাজ শেখের ছেলে পারভেজ শেখ, সামছুল হক মাতুব্বরের ছেলে হাসান মাতুব্বর, বেল্লাল মোল্লার ছেলে পারভেজ মোল্লা, সিরাজ মোল্লার ছেলে মেহেদী মোল্লা ও বোরহান চৌকিদারের ছেলে রিয়াজ চৌকিদার।

তাদের বয়স ১৯ থেকে ২১ বছরের মধ্যে।

পরিবারগুলো জানায়, ইতালি যেতে ডাসার উপজেলার পশ্চিম বালিগ্রাম গ্রামের লিবিয়া প্রবাসী জামাল সরদারের সঙ্গে কথা হয় তাদের। জামালের কথামতো তারা রাজৈর উপজেলার বদরপাশা গ্রামের মিলন মিয়া নামের আরেক দালালের সঙ্গে কথা বলেন।

আলোচনায় ঠিক হয়, তাদের লিবিয়া হয়ে ইতালি নিয়ে যাওয়া হবে। জনপ্রতি সাড়ে ৯ লাখ টাকা করে চুক্তি হয়। চুক্তি অনুযায়ী, মিলনের কাছে সাড়ে ৯ লাখ টাকা করে পরিশোধ করে ওই ৯ যুবকের পরিবার।

এরপর লিবিয়ার উদ্দেশ্যে তারা দেশ ছাড়েন দেড় মাস আগে। এরই মধ্যে তারা লিবিয়ায় গিয়ে পৌঁছায়। সেখান থেকে গত ৩ মার্চ ইটালি যেতে সাগর পাড়ি দেয়ার কথা বলে নিয়ে তাদের জিম্মি করা হয়।

পরিবারের সদস্যদের দাবি, এরপর প্রত্যেক যুবকের পরিবারের কাছে তাদের সন্তানদের দিয়ে ভিডিও কল করিয়ে ৯ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়।

ইতালির উদ্দেশ্যে পাড়ি জমানো আকতার শেখের বাবা সুলতান খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার ছেলেকে জিম্মি করে ৯ লাখ টাকা দাবি করছে। এখন আমি এতো টাকা কোথায় পাবো? যে দালালের মাধ্যমে লিবিয়ায় পাঠিয়েছি, তাকেও পাওয়া যাচ্ছে না।

‘এখন আমার ছেলেকে ফেরত আনার জন্য সরকারের কাছে জোর দাবি জানাই। আমার ছেলেকে ফেরত চাই।’

পারভেজ শেখের বাবা সিরাজ শেখ বলেন, ‘ধার-দেনা করে পোলারে বিদেশ পাঠাইলাম। এখন আর টাকা দেয়ার মতো সাধ্য আমার নেই। দালালের ধর্না দিয়েও কোনো কাজে আসছে না।

‘কীভাবে আমার সন্তানকে পাব? সরকারের কাছে সহযোগিতা চাই, আমি আমার পোলা ফেরত চাই।’

অভিযোগের বিষয়ে জানতে বালিগ্রামের লিবিয়া প্রবাসী জামাল সরদারের ইমু ও হোটাসআপে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তার সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। মেসেজ দিয়েও তার সাড়া মেলেনি।

তার গ্রামের বাড়িতে যোগাযোগ করলে, কেউ সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে রাজি হননি। অপরদিকে রাজৈর উপজেলার বদরপাশা গ্রামের মিলন মিয়াকে তার বাড়িতে পাওয়া যায়নি। স্থানীয়রা জানান, তিনি গা ঢাকা দিয়েছেন।

ডাসার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. হাসানুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভুক্তভোগী পরিবারগুলো বিভিন্ন স্থানে বসে দালালদের সঙ্গে লেনদেন করেছে। যা আমার থানা এলাকার বাইরে।

মানবপাচার মামলাকে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেখা হয় জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পরিবার মানবপাচার মামলা করলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। অভিযুক্তদের খুঁজে বের করা হবে।’

আরও পড়ুন:
লিবিয়ায় জেল খেটে ফিরলেন ১১৪ বাংলাদেশি
লিবিয়ার প্রধানমন্ত্রীর গাড়িতে বন্দুকধারীর হামলা
দালালের ফাঁদে পড়ে বন্দি লিবিয়ায়
লিবিয়ায় প্রেসিডেন্ট পদে লড়াইয়ে ‘অযোগ্য’ গাদ্দাফিপুত্র
লিবিয়ায় বন্দিশিবিরে ‘চরম ঝুঁকিতে’ নারী-শিশু

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Explosion in Sitakunda DNA test identified 6 bodies

সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: ডিএনএ পরীক্ষায় ৮ মরদেহ শনাক্ত

সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: ডিএনএ পরীক্ষায় ৮ মরদেহ শনাক্ত
সুমন বণিক বলেন, ‘বুধবার রাতে আমরা ডিএনএ পরীক্ষার ফল হাতে পেয়েছি। প্রথম দফায় আটটি অজ্ঞাতপরিচয় মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। এই মরদেহগুলোর মধ্যে পাঁচটি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে, দুটি আঞ্জুমানে মুফিদুলে এবং একটি কক্সবাজারে রয়েছে।’

চট্টগ্রামে সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনায় উদ্ধার অজ্ঞাতপরিচয় মরদেহগুলোর মধ্যে আটজনের পরিচয় শনাক্ত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সীতাকুণ্ড থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুমন বণিক।

এই আটজন হলেন আকতার হোসেন, আবুল হাশেম, বাবুল মিয়া, মনির হোসেন, মো. সাকিব, মো. রাসেল, মো. শাহাজান ও আব্দুস সুবহান প্রকাশ আব্দুর রহমান।

সুমন বণিক বলেন, ‘বুধবার রাতে আমরা ডিএনএ পরীক্ষার ফল হাতে পেয়েছি। প্রথম দফায় আটটি অজ্ঞাতপরিচয় মরদেহের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। এই মরদেহগুলোর মধ্যে পাঁচটি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে, দুটি আঞ্জুমানে মুফিদুলে এবং একটি কক্সবাজারে রয়েছে। আমরা এই আটজনের পরিবারকে খবর দিয়েছি, তারা এসে মরদেহ নিয়ে যেতে পারবে।’

নেদারল্যান্ডস ও বাংলাদেশের যৌথ মালিকানাধীন (জয়েন্ট ভেঞ্চার কোম্পানি) প্রতিষ্ঠান বিএম কনটেইনার ডিপো সীতাকুণ্ডের ভাটিয়ারী এলাকায়। বাংলাদেশে এর মালিকানা স্মার্ট গ্রুপের। গ্রুপের চেয়ারম্যান মুস্তাফিজুর রহমানই ডিপোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক। পরিচালক হিসেবে রয়েছেন তার ছোট ভাই মুজিবুর রহমান।

এই ডিপোতে গত ৪ জুন রাত ৯টার দিকে আগুন লাগে। রাত ১১টার দিকে প্রথম বড় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

একে একে ছুটে যায় চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিসের ১৫টি ইউনিট। নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুর জেলা থেকেও পরে যোগ দেয় কয়েকটি ইউনিট। ৫ জুন সকাল পর্যন্ত আগুন নেভাতে আসা ইউনিটের সংখ্যা বেড়ে হয় ২৫টি। কিন্তু কনটেইনারে থাকা রাসায়নিক পদার্থের কারণে দফায় দফায় বিস্ফোরণে বাড়ে আগুনের ভয়াবহতা।

৮৭ ঘণ্টা পর ৮ জুন দুপুরে বিএম কনটেইনার ডিপোর আগুন নেভে। আগুন ও বিস্ফোরণের ঘটনার প্রথম দুই দিনে ৪১টি মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ। পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান চারজন। বুধবার পর্যন্ত বিভিন্ন সময় দেহাবশেষ পাওয়া গেছে ছয়জনের। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ৫১ জন হিসাব করা হচ্ছে।

প্রথম দুই দিনে উদ্ধার ৪১ মরদেহের মধ্যে পরিচয় পাওয়া যায় ২৫ জনের। এরপর ঢাকা ও চট্টগ্রামে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনজন। ৬ জুন থেকে ৬ জুলাই পর্যন্ত দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয় ছয়টি। এরপর প্রথম দফায় ডিএনএ পরীক্ষায় পরিচয় মেলে আটটি মরদেহের। সেই হিসাবে এখন পর্যন্ত পরিচয় শনাক্ত হয়নি আরও ১৫ জনের।

আরও পড়ুন:
সীতাকুণ্ডের আগুন: গাড়ির মালিকদের সাড়ে ৪ কোটি টাকা ক্ষতি
সীতাকুণ্ডে দগ্ধ ৬ জনকে শেখ হাসিনা বার্ন থেকে ছাড়পত্র
সীতাকুণ্ডে আগুনে দগ্ধ ১০ জনকে আর্থিক অনুদান
বিএম ডিপো ও ট্রেনে আগুনে নাশকতাযোগ: তথ্যমন্ত্রী
বিএম ডিপোতে আরও দেহাবশেষ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Obstacles to crossing the ferry launch by boat with bikes

ফেরি-লঞ্চে পারাপারে বাধা, বাইক নিয়ে নৌকায়

ফেরি-লঞ্চে পারাপারে বাধা, বাইক নিয়ে নৌকায় নৌকায় করে ঝুঁকি নিয়ে মোটরসাইকেল পারাপার করছেন চালকরা। ছবি: নিউজবাংলা
মোটরসাইকেলচালক ইমরান হোসেন বলেন, ‘ইচ্ছা ছিল ঈদে মোটরসাইকেলে করে পদ্মা সেতু পাড়ি দেব। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে সেটি পূরণ হলো না। এখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে নৌকায় করে পাড়ি দিতে হচ্ছে উত্তাল পদ্মা।’

পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞাসহ ঈদের আগে-পরে নৌপথে ফেরি বা লঞ্চে করে পারাপার নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় বিপাকে পড়েছেন ঘরমুখী বাইকচালকেরা।

সেতু পারাপারের সুযোগ পেতে দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষার পর নিরাপত্তাকর্মী, সেতু কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনের তোপের মুখে অনেক বাইকার বাড়ি ফিরে গেছেন। কেউ কেউ আবার ট্রলারে করে ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিচ্ছেন।

এর আগে ২৫ জুন পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পরের দিনই সেতু দিয়ে মোটরসাইকেল পারাপার নিষিদ্ধ করে কর্তৃপক্ষ। সেতু দিয়ে ঈদের আগে আর বাইক চলাচলের সুযোগ দেয়া হবে না বলেও জানানো হয়েছে।

এই নিষেধাজ্ঞা দেয়ার পর এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে মাওয়া পর্যন্ত গিয়ে ফেরি দিয়ে পদ্মা নদী পার হয়ে আবার বাইকে চড়ে গন্তব্যে যাচ্ছিলেন বাইকাররা। কিন্তু গত ৬ জুলাই নৌপথে দুই চাকার যানটি বহন নিষিদ্ধ করা হয়।

বলা হয় আগামী ১০ দিন এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। অর্থাৎ ঈদের পর আরও পাঁচ দিন লঞ্চে বা ফেরিতে করে বাইক পরিবহন করা যাবে না।

এর আগে সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা আসে ৭ জুলাই থেকে ১৩ জুলাই পর্যন্ত আন্তজেলায় মোটরসাইকেল চালাতে হবে। এক জেলা থেকে অন্য জেলায় মোটরসাইকেল নিয়ে যাওয়া যাবে না। এসব সিদ্ধান্ত বাইকচালকদের অসন্তুষ্ট ও হতাশ করে।

মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে অপেক্ষায় থাকা কয়েকজন মোটরসাইকেলচালকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সেতুতে মোটরসাইকেলের জন্য ১০০ টাকা করে টোল নির্ধারিত থাকলেও নৌকায় করে ৬০০ থেকে ৮০০ টাকা করে নদী পাড়ি দিতে হচ্ছে।

মোটরসাইকেলচালক ইমরান হোসেন যাবেন মাদারীপুরের কালকিনিতে। তিনি বলেন, ‘ইচ্ছা ছিল ঈদে মোটরসাইকেলে করে পদ্মা সেতু পাড়ি দেব। কিন্তু নিষেধাজ্ঞার কারণে সেটি পূরণ হলো না। এখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া দিয়ে নৌকায় করে পাড়ি দিতে হচ্ছে উত্তাল পদ্মা।

‘অন্যের দায় আমাদের ওপর চাপানো হচ্ছে। আরও অনেক গাড়িই তো অ্যাক্সিডেন্ট করেছে, সেগুলো কি বন্ধ করা হয়েছে।’

মোটরসাইকেলচালক মো. ইমরানের বাড়ি মাদারীপুর। পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় তিনি অনেক খুশি। কিন্তু মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞায় কিছুটা আফসোসও হচ্ছে তার।

তিনি বলেন, ‘বাইক নিয়ে পদ্মা সেতু হয়ে বাড়ি যেতে পারছি না, তাই খারাপ লাগছে। এতে সড়কে বিভিন্ন জায়গায় ভোগান্তিতে পড়তে হলো। এখন ট্রলারে করে বাইক নিয়ে পদ্মা পাড়ি দিয়ে ওপারে যাব।’

ইলা হাওলাদার বলেন, ‘আমি ও আমার হাজব্যান্ড ঈদের ছুটিতে যাব পদ্মার ওপারে। কিন্তু সেতুতে মোটরসাইকেল চলবে না, ফেরিতে চলবে না। আমাদের ওপারে যেতেই হবে, তাই বিকল্প ব্যবস্থা না পেয়ে ট্রলারে করে নদী পাড়ি দিচ্ছি।’

এ বিষয়ে জানতে বাংলাদেশ সেতু বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী তোফাজ্জল হোসেনের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি রাজি হননি।

আরও পড়ুন:
গাবতলী থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলমুখী যাত্রা সহজ, কঠিন উত্তরে
দাঁড়িয়ে থাকা ট্রাকে মোটরসাইকেলের ধাক্কা, যুবক নিহত
ঢাকা-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে দীর্ঘ জট
‘এবার ট্রেনের ভেতরে ভিড় কম’
ঈদযাত্রায় নিহত দুই পোশাকশ্রমিক

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The half dead body of a journalist was recovered in Kushtia on the 5th day of his disappearance Zahiduzzaman Kushtia 08 07 2022

নিখোঁজ সাংবাদিকের মরদেহ নদীতে

নিখোঁজ সাংবাদিকের মরদেহ নদীতে
ওসি কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বেলা ২টার দিকে কুষ্টিয়ার গড়াই সড়ক সেতুর নিচে ভাসমান মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।’

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে নিখোঁজের পাঁচ দিন পর এক সাংবাদিকের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

উপজেলার যদুবয়রা গ্রামের নতুন ব্রিজের নিচ থেকে বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে হাসিবুর রহমান রুবেলের ভাসমান মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার বেলা ২টার দিকে কুষ্টিয়ার গড়াই সড়ক সেতুর নিচে ভাসমান মরদেহ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।’

কুষ্টিয়া জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সভাপতি গোলাম মওলা বলেন, ‘সাংবাদিক রুবেল জেলা রিপোর্টার্স ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। তিনি স্থানীয় দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এবং আমাদের নতুন সময় পত্রিকার জেলা প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। একই সঙ্গে ঠিকাদারি কাজও করতেন বলে জানা গেছে।’

রুবেলকে হত্যা করা হয়েছে বলে দাবি করেন সাংবাদিক রুবেলের ছোট ভাই মাহবুব রহমান। তিনি বলেন, ‘তার সঙ্গে কারও শত্রুতা ছিল- এমন খবর পরিবারের কারোর কাছে নেই। আমি ভাই হত্যার বিচার চাই।’

কুমারখালী থানায় পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা হবে বলে জানান তিনি।

মাহবুব বলেন, ‘প্রতি রাতেই আমরা একসঙ্গে খেতাম। ৩ তারিখে রাত ১১টা বেজে গেলেও যখন আসেনি, তখন সাংবাদিকদের জানিয়ে জিডি করি।’

কুষ্টিয়া মডেল থানায় করা ওই জিডিতে উল্লেখ করা হয়, রাত ৯টার দিকে কুষ্টিয়া শহরের সিঙ্গার মোড়ে অবস্থিত দৈনিক কুষ্টিয়ার খবর পত্রিকার অফিসে কাজ করছিলেন রুবেল। এ সময় তার মোবাইলে একটি কল এলে তিনি অফিস পিয়নকে বাইরে থেকে আসছি বলে বের হয়ে যান। এর পর থেকে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এদিকে বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়া প্রেস ক্লাবের সামনে ওই সাংবাদিকের খোঁজ পেতে মানববন্ধন করেন পরিবারের সদস্য ও সাংবাদিকরা।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Syedpur Railway missed the target of repairing coaches

কোচ মেরামতে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াল সৈয়দপুর রেল কারখানা

কোচ মেরামতে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াল সৈয়দপুর রেল কারখানা
জিওএইচ শপের সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী আরিফুর রহমান জানান, ৬৫টি কোচ মেরামতের লক্ষ্য থাকলেও ৮৮টি কোচ মেরামত করে বিভিন্ন রুটে পাঠিয়েছে রেল কারখানা। যাত্রীদের কথা বিবেচনা করে দিন-রাত শ্রম দিয়েছেন কারখানাসংশ্লিষ্টরা।

ঈদুল আজহার আগে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি কোচ মেরামতের কথা জানিয়েছেন নীলফামারীর সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার সংশ্লিষ্টরা।

৮৮টি কোচ মেরামত হয়েছে ঈদ ঘিরে। এর মধ্যে ৭২টি ব্রডগেজ ও ১৬টি মিটার গেজ কোচ। এসব কোচ হস্তান্তর করা হয়েছে রেলের পাকশী ও লালমনিরহাট ট্রাফিক বিভাগে।

কারখানার জেনারেল ওভার হোলিং (জিওএইচ) শপের মিস্ত্রি রফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যখন আমরা কাজ করি, তখন আন্তরিকতার অভাব থাকে না। বিশেষ করে ঈদ ঘিরে আমরা আন্তরিকতা নিয়ে কাজ করি। এই সময়ে শুধু সেবার বিষয়টি মাথায় থাকে।’

একই বিভাগের আরেক শ্রমিক রাশেদ আলম বলেন, ‘আমরা খুশি আমাদের শ্রমের ফলে ৮৮টি কোচ ব্যবহার উপযোগী হয়েছে। এসব কোচে ঘরে ফিরতে পারবে মানুষ। পরিবার-পরিজন নিয়ে আনন্দ ভাগাভাগি করতে পারবে।’

তসু উদ্দিন নামে অন্য শ্রমিক বলেন, ‘জনবল দিন দিন কমে যাচ্ছে। সংকটের দিকে যাচ্ছে কারখানাটি। দক্ষ শ্রমিকরা চলে যাচ্ছে। নতুন শ্রমিক আসছে না। আমি মনে করি, আমরা অবসরে যাওয়ার আগে, নতুন শ্রমিক নিয়োগ দেয়া জরুরি। তাহলে কারখানা উপকৃত হবে। সচল থাকবে।’

ঈদ ঘিরে কারখানার ক্যারেজ শপ (উপকারখানা), পেইন্ট শপ, হেবি রিপিয়ারিং শপ, জিওএইচসহ ২৯টি শপে ছিল কর্মযজ্ঞ।

জিওএইচ শপের সিনিয়র সহকারী প্রকৌশলী আরিফুর রহমান জানান, ৬৫টি কোচ মেরামতের লক্ষ্য থাকলেও ৮৮টি কোচ মেরামত করে বিভিন্ন রুটে পাঠিয়েছে রেল কারখানা। যাত্রীদের কথা বিবেচনা করে দিন-রাত শ্রম দিয়েছেন কারখানাসংশ্লিষ্টরা।

তিনি আরও জানান, ২ হাজার ৮৫৯ জনবলের বিপরীতে কর্মরত মাত্র ৭২৮ জন, যা প্রয়োজনের মাত্র ২০ শতাংশ। এই জনবল দিয়ে যাত্রীবাহী কোচ, মালবাহী ওয়াগন মেরামত ছাড়াও তৈরি হচ্ছে ১২ হাজার ধরনের রেলওয়ের যন্ত্রাংশ।

সৈয়দপুর রেলওয়ের বিভাগীয় তত্ত্ববধায়ক সাদেকুর রহমান নিউজবাংলাকে জানান, মেরামত হওয়া কোচগুলো চলাচল করবে ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-পঞ্চগড় রুটে।

সাদেকুর রহমান বলেন, ‘জনবল সংকটের মধ্যেও লক্ষ্যমাত্রা ছাড়ানোর বিষয়ে আন্তরিকতাই মূল চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে। তারাই এর নেপথ্যের মূল কারিগর।’

জনবল সংকট পূরণে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
এবার কম গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প স্থগিত
ঢাবিতে প্রথম জাকারিয়াকে নিয়ে কোচিং সেন্টারের টানাটানি
৮ থেকে ২৫ নভেম্বর বন্ধ কোচিং সেন্টার
লুকোচুরি খেলা
এক টাকায় বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি কোচিং

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chhatra League leader hacked to death

ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা নিহত হাসিবুল বাশার। ছবি সংগৃহীত
ওসি বলেন, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীদের দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এক উপজেলা ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার গোপালপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজার-গোপালপুর রোডের মবুল্লাহপুর তিন রাস্তার মোড়ে বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ২৫ বছরের হাসিবুল বাশারের বাড়ি বেগমগঞ্জের গোপালপুর ইউনিয়নের কোটরা মহব্বতপুর গ্রামে। বেগমগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সদস্য ছিলেন তিনি।

ওসি বলেন, ‘এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ কর্মীদের দ্বন্দ্বের জেরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসেছি। জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
জামাতার বিরুদ্ধে শ্বশুরকে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগ
পাবনায় আওয়ামী লীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
যুবলীগ নেতা খুন ‘মাদকের বিরোধে’
যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা
‘আধিপত্য বিস্তারের জেরে’ শিক্ষককে কুপিয়ে হত্যা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The hanging body of SIs wife was recovered

এসআইয়ের স্ত্রীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

এসআইয়ের স্ত্রীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার প্রতীকী ছবি
ওসি ইখতিয়ার বলেন, ‘ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মরদেহ উদ্ধারের সময় ওনার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। আমাদের ধারণা, তিনি থানায় ছিলেন। তবে তদন্তের পর সব বলতে পারব। বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।’

সুনামগঞ্জের পৌর শহরে পুলিশের এক উপপরিদর্শকের (এসআই) স্ত্রীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

পৌর শহরের মরাটিলা এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় রিক্তা বেগমের মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ।

সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

২৫ বছর বয়সী রিক্তার বাড়ি তাহেরপুর উপজেলায়। স্বামী মো. আমিরুল সুনামগঞ্জের দিরাই থানার এসআই পদে কর্মরত।

ওসি ইখতিয়ার বলেন, ‘ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। মরদেহ উদ্ধারের সময় ওনার স্বামী বাড়িতে ছিলেন না। আমাদের ধারণা, তিনি থানায় ছিলেন। তবে তদন্তের পর সব বলতে পারব। বিষয়টি অধিক গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে।’

পারিবারিক কলহের জেরে এ ঘটনা ঘটতে হতে পারে বলে ধারণা করছেন সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আমি আত্মহত্যার ঘটনাটি শুনেছি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে হয়তো কোনো কিছু নিয়ে সমস্যা ছিল। সে জন্য এ ঘটনা ঘটতে পারে। ঘটনাটি তদন্তাধীন আছে।’

আরও পড়ুন:
স্ত্রীর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেপ্তার কাউন্সিলর পুত্র 
ঘরে মা-ছেলের গলা কাটা দেহ
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেসিনে নবজাতকের মরদেহ
কাউন্সিলরের বাসায় পুত্রবধূর গলায় ওড়না প্যাঁচানো মরদেহ
নিখোঁজ অটোচালকের মরদেহ মিলল ঝোপে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
4 arrested for organized rape of a schoolgirl

স্কুলছাত্রীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, গ্রেপ্তার ৪

স্কুলছাত্রীকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, গ্রেপ্তার ৪
এজাহারে বলা হয়, ‘ওই কিশোরী স্থানীয় একটি মাধ্যমিক স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী। নাঈমের সঙ্গে তার আগের পরিচয় ছিল। গত ২৯ জুন নাঈম তাকে সিদ্ধিরগঞ্জে রোহানদের বাড়ির ছাদে ডেকে নেয়। এ সময় নাঈমসহ তার বাকি চার বন্ধু ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।’

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে স্কুলছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় চারজনকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে ওই ছাত্রীর বাবা মামলা করেন। এর আগে বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের আটক করা হয়।

গ্রেপ্তাররা হলেন সিদ্ধিরগঞ্জের বউবাজার এলাকার মোহাম্মদ নাঈম, মো. যুবরাজ, মো. দিপু ও মো. পিয়াস। তবে মামলার আরেক আসামি মোহাম্মদ রোহান পলাতক।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন৷

এজাহারে বলা হয়েছে, ‘ওই কিশোরী স্থানীয় একটি মাধ্যমিক স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী। নাঈমের সঙ্গে তার পরিচয় ছিল। গত ২৯ জুন নাঈম তাকে সিদ্ধিরগঞ্জে রোহানদের বাড়ির ছাদে ডেকে নেয়। এ সময় নাঈমসহ তার বাকি চার বন্ধু ওই কিশোরীকে ধর্ষণ করে।’

মামলায় আরও বলা হয়, ‘ঘটনার পর ভয় পেয়ে ওই কিশোরী ধর্ষণের বিষয়টি পরিবারের কাউকে জানায়নি। বুধবার মা-বাবাকে বিষয়টি জানালে তারা সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় রাতে অভিযোগ করেন। অভিযোগের পর পরই সিদ্ধিরগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত চারজনকে আটক করা হয়।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) আবু বকর সিদ্দিক জানান, পলাতক আসামি রোহানকে গ্রেপ্তারের জন্য অভিযান চলছে। বাকি আসামিদের আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলার পর ওই ছাত্রীর শারীরিক পরীক্ষার জন্য নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বৃদ্ধের পায়ুপথে টর্চলাইট, আরেক আসামি গ্রেপ্তার
ইউপি মেম্বারকে ‘সংঘবদ্ধ ধর্ষণ’, মাইক্রোবাসচালক গ্রেপ্তার
বৃদ্ধের পায়ুপথে টর্চলাইট, যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার
বাসে তুলে ধর্ষণচেষ্টার সেই আসামি গ্রেপ্তার
৯ বছরের শিশুকে সংঘবদ্ধ ‘ধর্ষণ’

মন্তব্য

p
উপরে