× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Pharmaceutical industry park waiting to go into production
hear-news
player
google_news print-icon

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

উৎপাদনে-যাওয়ার-অপেক্ষায়-ওষুধ-শিল্প-পার্ক
সব ঠিক থাকলে আগামী দুই বছরের মধ্যে ওষুধ শিল্প পার্কে উৎপাদনে যাওয়া সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ছবি: নিউজবাংলা
মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় ২১৬ একর জমির ওপর গড়ে উঠেছে ওষুধ শিল্প পার্ক। অবকাঠামো নির্মাণ শেষ, তবে ওষুধ কোম্পানিগুলো নিজেদের কারখানা এখনও গড়ে তোলেনি সেখানে। ২০২৬ সালে এলডিসি থেকে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক উত্তরণ ঘটলে এ শিল্প পার্ক ওষুধ শিল্পকে সুরক্ষা দেবে। 

ওষুধ শিল্পের কাঁচামাল উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনের লক্ষ্যে ‘অ্যাকটিভ ফার্মাসিউটিক্যাল ইনগ্রেডিয়েন্ট (এপিআই)’ বা ‘ওষুধ শিল্প পার্ক’ নির্মাণের যাত্রা শুরু হয়েছিল এক যুগ আগে। এখন সেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন হতে চলছে।

রাজধানী থেকে ৩৭ কিলোমিটার দূরে মেঘনা নদীর পাড় ঘেঁষে মুন্সীগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় ২১৬ একর জমির ওপর গড়ে ওঠা এই শিল্প পার্কের ‘সরকারি অংশের অবকাঠামো উন্নয়নকাজ’ শেষ হলেও উৎপাদন শুরু হয়নি এখনও।

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

প্রকল্প এলাকার কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ২১৬ একর জমিতে ৪২টি প্লট ২৭টি ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিকে ২০১৭ সালে বুঝিয়ে দেয়া হলেও মাত্র দুটি কোম্পানির কারখানা দৃশ্যমান। দুটির আংশিক কাজ হয়েছে। বাকিগুলোর ভবন নির্মাণসহ আনুষঙ্গিক কাজ শুরুই হয়নি এখনও।

প্লট বরাদ্দ পাওয়া অবশিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলো কবে নাগাদ কারখানা নির্মাণ করে উৎপাদনে যাবে, তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। তবে সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী দুই বছরের মধ্যে উৎপাদনে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান।

বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির মহাসচিব এস এম শফিউজ্জামান দাবি করেছেন, ওষুধ শিল্প পার্ক পূর্ণাঙ্গ উৎপাদনে যাবে আগামী এক বছরের মধ্যে।

ওষুধ শিল্প পার্ক সরেজমিন পরিদর্শনকালে নিউজবাংলা কথা বলেছে প্রকল্প পরিচালকসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে। তারা বলেছেন, সরকারের যে দায়িত্ব ছিল অবকাঠামোর উন্নয়ন করা, তা শেষ হয়েছে গত বছরের জুনে। এখন নিজস্ব কারখানা স্থাপনের জন্য উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসতে হবে।

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ শহীদুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সরকারি অংশের অবকাঠামো উন্নয়নকাজ শেষ হয়ে গেছে। এখন উদ্যোক্তাদের অংশের কাজ বাকি। তারা দ্রুত কারখানা স্থাপন করলে উৎপাদনে যাওয়া সহজ হবে।’

তিনি জানান, করোনাভাইরাস মহামারির কারণে প্রকল্পের কাজ ব্যাহত হয়। এখন করোনার ভয় কেটে গেছে। সব কিছু স্বাভাবিক হচ্ছে। ফলে কাজের গতি এসেছে। অনেক উদ্যোক্তা এগিয়ে আসছেন। এরই মধ্যে ভবন নির্মাণসহ অন্যান্য কাজ প্রায় শেষ করে ফেলেছে দু-তিনটি প্রতিষ্ঠান। শিগগিরই উৎপাদনে যাবে তারা।

সব প্রতিষ্ঠান উৎপাদনে যেতে আরও দুই বছর সময় লাগবে বলে মনে করেন তিনি।

যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির মহাসচিব ও হাডসন ফার্সাসিউটিক্যাল লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম শফিউজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটা ঠিক, প্লট বরাদ্দ পাওয়া অনেক প্রতিষ্ঠান এখনও এপিআইতে যায়নি। তার মানে এই নয় যে তারা এপিআইতে কারখানা করছে না। অগ্রগতির শেষ ধাপে রয়েছি আমরা।’

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

তিনি জানান, ইতোমধ্যে কিছু কিছু শিল্প ইউনিট তাদের কাজ শুরু করে দিয়েছে। এর মধ্যে বড় চারটি শিল্প ইউনিট তাদের অবকাঠামো নির্মাণ শেষে জুনের মধ্যে ট্রায়ালে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে।

২০২৩ সালের প্রথম দিকেই এপিআই পার্ক পুরোপুরি উৎপাদনে যাবে বলে আশা করছেন তিনি।

দেশীয় ওষুধ শিল্পের প্রসার, প্রতিযোগিতামূলক বাজার সৃষ্টি, পণ্যের বৈচিত্র্যকরণ, ওষুধের মান উন্নয়নে গবেষণা এবং প্রয়োজনীয় কাঁচামাল যেন বাংলাদেশেই উৎপাদন করা যায়, সেই লক্ষ্যে ২০০৮ সালে দেশে একটি আলাদা ওষুধ শিল্প পার্ক গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত হয়। একই বছরের ডিসেম্বরে এ-সংক্রান্ত প্রকল্প একনেকে অনুমোদন পায়।

শুরুতে ওষুধ শিল্প পার্ক বানাতে ব্যয় ধরা হয়েছিল ২১৩ কোটি টাকা, কিন্তু নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ না হওয়া এবং নানা জটিলতার কারণে এই প্রকল্পের ব্যয় ও মেয়াদ দুটোই বেড়েছে।

শুরু থেকে এ পর্যন্ত তিন দফা সংশোধন হয় এ প্রকল্পের। সবশেষ ব্যয় ধরা হয় ৩৮১ কোটি টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে জোগান দেয়া ৩০১ কোটি টাকা ব্যয় হয় মূল প্রকল্পের অবকাঠামো উন্নয়নে। আর কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার বা সিইটিপি নির্মাণেই বরাদ্দ দেয়া হয় ১২০ কোটি টাকা। ওষুধ কোম্পানির মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতির অর্থে নির্মাণ হয় সিইটিপি।

এপিআই পার্কের অবকাঠামো কাজ শেষ হওয়া সত্ত্বেও কোম্পানিগুলো কেন কারখানা স্থাপনে এগিয়ে আসছে না, তা জানতে চাইলে একমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মিজানুর রহমান সিনহা বলেন, ‘এপিআই পার্ক বড় ব্যয়বহুল ইন্ডাস্ট্রি। দেশে এপিআই পার্ক নতুন, তবে বিনিয়োগের ঝুঁকিটাও কম নয়। অনেকে হয়তো সেই ঝুঁকি পর্যবেক্ষণ করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ঝুঁকির কথা চিন্তা না করেই এগিয়ে এসেছি। আশা করছি বাকিরাও শিগগিরই চলে আসবে, তবে করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে উদ্যোক্তারা পিছিয়ে পড়েছেন।’

প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা যায়, মাটি ভরাট, রাস্তা, ড্রেন, কালভার্ট, অ্যাপ্রোচ রোড, বিদ্যুৎ সংযোগ, পানি সরবরাহ, গ্যাস পাইপলাইন স্থাপন, ড্রেন নির্মাণসহ প্রয়োজনীয় অবকাঠামো উন্নয়নকাজ শেষ হয়েছে।

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ শহীদুল ইসলাম দাবি করেন, ওষুধ শিল্প পার্ক চালু হলে এখান থেকে শতভাগ কাঁচামাল উৎপাদন করা যাবে। ফলে ওষুধ সস্তা হবে। এটি উৎপাদনে গেলে সরাসরি কর্মসংস্থান হবে ২৫ হাজার লোকের।

প্রকল্প এলাকা ঘুরে দেখা যায়, হেলথকেয়ার এবং একমি ল্যাবরেটরিজের কারখানার কাজ অনেক দূর এগিয়েছে। তাদের নিজস্ব অবকাঠামো শেষ হওয়ার পথে।

যন্ত্রপাতিও আমদানির প্রক্রিয়া চলছে বলে জানান কর্মকর্তারা।

হেলথকেয়ার ২০১৯ সাল থেকে এখানে তাদের নিজস্ব অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ শুরু করে। এরই মধ্যে তারা ল্যাবরেটরি এবং গবেষণার কাজ সম্পন্ন করেছে।

গত নভেম্বর থেকে ‘পরীক্ষামূলক উৎপাদন’ শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। কর্মকর্তারা জানান, নিজস্ব ল্যাবরেটরিতে তারা ওষুধের তিনটি কাঁচামাল উৎপাদনের পরীক্ষা চালিয়ে সফল হয়েছেন।

হেলথকেয়ার কেমিক্যালস লিমিটেডের এপিআই প্রকল্পের সহকারী ব্যবস্থাপক হাসিবুর রহমান নিউজবাংলাকে জানান, দুই মাসের মধ্যে তারা পাইলট উৎপাদনে যাবেন। পূর্ণাঙ্গ উৎপাদনে যাবেন এ বছরের ডিসেম্বরে।

এখানে ৪০টি ওষুধের কাঁচামাল উৎপাদন করবে হেলথকেয়ার। সেগুলো নিজেরাই পেটেন্ট করে নেবে প্রতিষ্ঠানটি।

বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার ‘বাণিজ্যসংক্রান্ত মেধাস্বত্ব’ (ট্রিপস) আইনে স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশ ওষুধের পেটেন্ট ছাড় পেয়ে আসছিল ৯৫ ভাগ ওষুধের ক্ষেত্রে। এ কারণে অনেক দেশের তুলনায় বাংলাদেশ সস্তায় ওষুধ উৎপাদন করতে পারছে।

২০২৬ সালে এলডিসি থেকে বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক উত্তরণ ঘটলে এই সুবিধা আর থাকবে না। তখন ওষুধ উৎপাদনে বিদেশি পেটেন্ট ব্যবহারের জন্য বাংলাদেশ সরকারকে রয়ালটি বা ফি দিতে হবে। ফলে উৎপাদন খরচ বেড়ে যাবে, যার প্রভাব পড়তে পারে ওষুধের দামের ওপর।

এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে হলে নিজেদের কাঁচামাল তৈরি করতে হবে। আর এ জন্য প্রয়োজন দ্রুত ওষুধ শিল্প পার্ক চালু করা।

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

বাংলাদেশের ওষুধ শিল্পের কাঁচামালের প্রায় পুরোটাই আমদানিনির্ভর।

পরিসংখ্যান বলে, বাংলাদেশ যদি কাঁচামালও উৎপাদন করতে পারে, তবে বছরে প্রায় ৭ বিলিয়ন বা ৬০ হাজার কোটি টাকা রপ্তানি আয় করা সম্ভব।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি অনুষদের সাবেক ডিন ড. আ ব ম ফারুক বলেন, ‘এলডিসি উত্তরণের পর আমাদের কোনো চ্যালেঞ্জ নেই। সমস্যা হতে পারে ২০৩৩ সালের পর। তার আগেই আমাদের প্রস্তুতি নিতে হবে।’

হেলথকেয়ারের এপিআই প্রকল্পের সহকারী ব্যবস্থাপক হাসিবুর রহমান বলেন, ‘এলডিসি থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর আমাদের ভয়ের কোনো কারণ নেই। কারণ তার আগেই ওষুধ শিল্প পার্ক উৎপাদনে যাবে।’

একই মন্তব্য করে ওষুধ শিল্প পার্কের প্রকল্প পরিচালক সৈয়দ শহীদুল ইসলাম বলেন, এলডিসি উত্তরণের আগেই এপিআই উৎপাদনে যাবে।

উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় ওষুধ শিল্প পার্ক

কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগারের কাজ প্রায় শেষ

পরিবেশ দূষণমুক্ত রাখতে প্রকল্প এলকায় দুই ইউনিটের কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার (সিইপিটি) নির্মাণ করা হচ্ছে। এতে ব্যয় ধরা হয় ১২০ কোটি টাকা। ভারতীয় প্রতিষ্ঠান রেমকি এনভায়রো সার্ভিসেস প্রাইভেট লিমিটেড এটি নির্মাণ করছে।

প্রতিষ্ঠানটির ভাইস প্রেসিডেন্ট শচিন ওটারকার জানান, প্রথম ইউনিটের কাজ প্রায় শেষ। আট মাস পর দ্বিতীয় ইউনিটের কাজ শেষ হবে। দুই ইউনিটের কাজ শেষ হলে সিইপিটি থেকে বর্জ্য শোধন করা যাবে দৈনিক ২০ লাখ লিটার।

এপিআই ইন্ডাস্ট্রিয়াল পার্ক সার্ভিসেস লিমিটেডের সহকারী প্রকৌশলী মাহমুদুল হাসান বলেন, এই সিইপিটির মাধ্যমে ‘শূন্য বর্জ্য ব্যবস্থাপনা’ নিশ্চিত করা হবে। পরিবেশের কোনো ক্ষতি হবে না।

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
700 corona patients left in 24 hours

২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী ছাড়াল ৭০০

২৪ ঘণ্টায় করোনা রোগী ছাড়াল ৭০০ ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
২০২২ সালের মার্চে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের পর মোট চারটি ঢেউ পাড়ি দিয়ে দেশ এখন পঞ্চম ঢেউয়ে। তবে চতুর্থ ঢেউ থেকেই দেখা যাচ্ছে দেশবাসীর মধ্যে এই ভাইরাস আগের মতো আর আতঙ্ক তৈরি করছে না। আর পঞ্চম ঢেউয়ে মৃত্যু তুলনামূলক কম।

করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৭০০ জন। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১৫ ছুঁইছুঁই। এই সময়ে মৃত্যু হয়েছে একজনের।

শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। এতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে ২৪ ঘণ্টা সারা দেশে ৪ হাজার ৮২৮ নমুনা পরীক্ষায় ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে ৭০৮ জনের দেহে।

করোনার আগের চারটি ঢেউয়ের মতো এবারও রোগী বেশি পাওয়া যাচ্ছে রাজধানীতে। নতুন করে যারা শনাক্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৫১৬ জনই দেশের প্রধান শহরের বাসিন্দা।

২০২০ সালের মার্চে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি শনাক্তের পর মোট চারটি ঢেউ পাড়ি দিয়ে দেশ এখন পঞ্চম ঢেউয়ে। তবে চতুর্থ ঢেউ থেকেই দেখা যাচ্ছে দেশবাসীর মধ্যে এই ভাইরাস আগের মতো আর আতঙ্ক তৈরি করছে না। আর পঞ্চম ঢেউয়ে মৃত্যু তুলনামূলক কম।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৫ হাজার ১৯৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৬৮৬ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৫ হাজার ১৮৮ মানুষ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হেনেছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায়
করোনায় মৃত্যুহীন দিনে শনাক্ত ৬৬৫
করোনায় ১ মৃত্যু, বেড়েছে শনাক্ত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
22 deaths detected in Corona 669

করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায়

করোনায় ২ মৃত্যু, শনাক্ত বেশি ঢাকায় ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, মৃত ২ জনই পুরুষ। তাদের একজন নেত্রকোণা এবং অন্যজন ময়মনসিংহে সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২ জনের মৃত্যু হয়েছে। দুই মাস পর এই ভাইরাসে মৃত্যু দেখল দেশ। এসময়ে ৫ হাজার ১৭ নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৬৯ জনের; তাদের ৫২১ জনই রাজধানীর বাসিন্দা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বৃহস্পতিবার নিয়মিত বিবৃতিতে এসব জানিয়েছে।

শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৫৩ শতাংশ উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরও জানায়, মৃত ২ জনই পুরুষ। তাদের একজন নেত্রকোণা এবং অন্যজন ময়মনসিংহ সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

টানা ১৪ দিন ধরে করোনা শনাক্তের হার ৫ শতাংশের ওপরে থাকায়, দেশে পঞ্চম ঢেউ নিশ্চিত হয়েছে। কারণ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলা যায়।

নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৪ হাজার ৪৮৯ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৩৫৪ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৪ হাজার ৫০১ মানুষ।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হেনেছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় শনাক্তের হার ছাড়াল ১৫ শতাংশ
করোনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত  ৬৭৮
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে সর্বোচ্চ শনাক্তের হার
পঞ্চম ঢেউয়ের তৃতীয় দিনে করোনায় ৫ মৃত্যু
পঞ্চম ঢেউয়ের দ্বিতীয় দিনে কমেছে শনাক্তের হার, মৃত্যু ১

মন্তব্য

বাংলাদেশ
In 24 hours 367 people in Dhaka and 139 people outside Dhaka were admitted to hospital due to dengue

ডেঙ্গুতে শূন্য মৃত্যু, ভর্তি ৫০৬

ডেঙ্গুতে শূন্য মৃত্যু, ভর্তি ৫০৬ দেশে গত বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নেয়া এক রোগী। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ৩৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৩৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে ৫০৬ জন রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এ বছরে এক দিনে এতসংখ্যক রোগী এই প্রথম।

একই সময়ে ডেঙ্গুতে কারও মৃত্যু হয়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। শূন্য মৃত্যু নিয়ে আজও মৃতের সংখ্যা ৫৫ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ৩৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৩৯ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বর্তমানে সারা দেশে ১ হাজার ৮৭৪ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৪২৭ জন এবং ঢাকার বাইরে ৪৪৭ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন।

এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৫ হাজার ৮৫২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১২ হাজার ১৩১ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৭২১ জন।

একই সময়ে সারা দেশে ছাড়প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ১৩ হাজার ৯২৩ জন। এর মধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ হাজার ৬৬৭ জন এবং ঢাকার বাইরে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৩ হাজার ২৪৬ জন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, কমেছে হাসপাতালে ভর্তি
ডেঙ্গু তো আমরাই লালন-পালন করছি: স্বাস্থ্যসচিব
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড
চুয়াডাঙ্গায় ৬ ডেঙ্গু রোগী
নগরে এডিস মশার লার্ভা, দেড় লাখ টাকা জরিমানা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Doubts about meeting the target of reducing water rabies to zero are increasing

জলাতঙ্ক বাড়ছে, শূন্যে নামানোর লক্ষ্য পূরণে সংশয়

জলাতঙ্ক বাড়ছে, শূন্যে নামানোর লক্ষ্য পূরণে সংশয় বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উপলক্ষে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম। ছবি: নিউজবাংলা
জলাতঙ্কে মারা যান ২৯ জন, পরের বছর তা বেড়ে হয় ৩৯ জনে। চলতি বছর ৯ মাসে এ সংখ্যাটি হয়েছে ৩১ জনে। এই হারে মৃত্যু হতে থাকলে তা আগের বছরের সংখ্যাকে ছাড়িয়ে যেতে পারে। অথচ সরকারের লক্ষ্য আছে ২০৩০ সালের মধ্যে মৃত্যু শূন্যে নামানোর।

কয়েক বছর ধরেই জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা নিতে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ছে। প্রধানত কুকুরের কামড়ের বিষয়টি নিয়ে আলোচনা থাকলেও বিড়ালের আঁচড় বা কামড়ের সংখ্যাও কম নয়।

ঢাকার সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালে টিকা নিতে আসা মানুষের সংখ্যা এখন বছরে ৮০ হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এর মধ্যে এখনও সিংহভাগই আসছে কুকুরের কামড় খেয়ে। তবে এ সংখ্যাটি কমে আসছে। কিন্তু বিড়ালের আক্রমণের শিকার মানুষদের সংখ্যাটি বাড়ছে।

টিকা নিতে আসা মানুষের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি জলাতঙ্কে মৃত্যুও তিন বছর ধরে ঊর্ধ্বমুখী। এ কারণে ২০৩০ সালের মধ্যে জলাতঙ্কে মৃত্যু শূন্যে নামানোর যে লক্ষ্য, সেটি পূরণ হবে কি না, তা নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়।

এই পরিস্থিতিতেও দুই মাস ধরে পথকুকুরের টিকাদান বন্ধ ছিল, অথচ বছরের এই সময়টায় কুকুরের আক্রমণ বেশি থাকে।

আবার কুকুরের টিকাদান কর্মসূচি থাকলেও ঘুরে বেড়ানো বিড়ালকে টিকা দেয়ার কর্মসূচি নেই। যারা ঘরে প্রাণীটি পালেন, তারা অবশ্য নিজ উদ্যোগে টিকা দিয়ে থাকেন বিভিন্ন সেন্টারে।

কুকুরের টিকাদান কর্মসূচিতে জড়িত একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বিড়ালের টিকাদানে কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই। কারণ হিসেবে বলছেন, ৯৫ থেকে ৯৯ শতাংশ ক্ষেত্রে কুকুরের আক্রমণেই রোগটা হয়ে থাক। তাই কুকুরকেই প্রধানত টিকাগুলো দেয়া হয়। আর বিড়াল ধরাও সহজ নয়।

জলাতঙ্ক প্রতিরোধ দিবসে সংক্রামক প্রতিরোধ হাসপাতালে টিকার লাইন

জলাতঙ্ক প্রতিরোধের ডাক নিয়ে বুধবার বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও জলাতঙ্ক প্রতিরোধ দিবস পালনের দিন মহাখালীর সংক্রামক ব্যাধি হাসপাাতালে টিকা নিতে আসা মানুষের সারি দেখা যায়।

টিকা নিতে আসা মো. তপনের বাসা মিরপুর ১৩ নম্বরে। আক্রান্ত হয়েছেন পথকুকুরের দ্বারা।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘রাস্তায় হাইটা যাইতেছি। হঠাৎ একটা কুকুর আইসা পায়ে কামড় দিল।’

কুকুরটাকে দেখে ক্ষিপ্ত মনে হয়েছিল কি না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কিছুই টের পাই নাই। এই রকম তো অনেক কুকুর প্রতিদিন এলাকায় ঘোরাফেরা করে। তাই জলাতঙ্কের টিকা নিতে আসছি।’

সাত বছর বয়সী রিয়ামনিকেও টিকা দিতে নিয়ে এসেছেন তার মা। তাকেও বুধবার বিকেল ৫টার দিকে আচমকা কুকুর কামড় দেয় বলে জানান মা রশিদা বেগম।

বিড়ালের আক্রমণের শিকার হওয়া ১৩ বছরের মেয়েকে নিয়ে এসেছিলেন মাসাররাত হোসেন। চার দিন আগের ঘটনায় এক দফা টিকা দিয়েছেন আগেও, এবার এসেছেন দ্বিতীয় ডোজ নিতে।

মারাসাত বলেন, ‘বিড়ালটি পোষা নয়, ঘরের মধ্যেই কোথা থেকে এসে ঘোরাঘুরি করছিল। হতে পারে আশপাশের। তারপর কামড় দেয় মেয়েকে।’

আক্রান্ত, বিড়ালের আক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ছে

এই হাসপাতালের তথ্যমতে, ২০১১ সাল থেকে চলতি বছরের মে পর্যন্ত ৬ লাখ ২১ হাজার ৬৪৭ জন জলাতঙ্কের টিকা নিয়েছেন।

এর মধ্যে ২০২০ সালে টিকা নেন ৬২ হাজার ২৯৩ জন। এর মধ্যে কুকুরের আক্রমণের কারণে ৪৫ হাজার ৪৪৭ জন এবং বিড়াল ও শিয়ালের আক্রমণের শিকার হন ১৬ হাজার ৮১৬ জন।

ওই বছরে জলাতঙ্কে মারা যান ২৯ জন, যারা আক্রমণের পরও টিকা নেনটি।

২০২১ সালে প্রাণীর আক্রমণ বৃদ্ধির বিষয়টি বোঝা যায় টিকার সংখ্যায়। সে বছর টিকা নেন ৭৪ হাজার ৬৬২ জন। এদের মধ্যে ৫২ হাজার ১২ জন কুকুরের কামড়ে এবং ২২ হাজার ৬৫০ জন বিড়াল বা শিয়াল দ্বারা আক্রান্ত হন।

ওই বছর জলাতঙ্কে মৃত্যু বেড়ে হয় ৩৯ জন।

চলতি বছরের ২৭ সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ৬০ হাজার ৫০০ জন। বাকি তিন মাস এই হারে টিকা দেয়া হলে সংখ্যাটি বেড়ে ৮ হাজার ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন হাসপাতালের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান।

এখন পর্যন্ত যত মানুষ এসেছেন, তাদের মধ্যে ৩৭ হাজার ৫৬৭ জন কুকুরের এবং ২২ হাজার ৯৩৩ জন বিড়াল-শিয়াল দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন।

চলতি বছরের ৯ মাসে এখন পর্যন্ত জলাতঙ্কে মারা গেছেন ৩১ জন। একই হারে যদি পরের তিন মাসে মৃত্যু হয়, তাহলে তা আগের বছরের সংখ্যাটি ছাড়িয়ে যেতে পারে।

হাসপাতাল কর্মকর্তা মিজানুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, 'প্রাণীদের কামড় আগের থেকে বেড়েছে। কারণ মানুষ এবং প্রাণীর সংখ্যা বাড়ছে, কিন্তু সচেতনতা বাড়েনি।

‘এখন পর্যন্ত যারা মারা গেছেন, তাদের কেউ টিকা নেননি। আর এই টিকার কার্যকারিতা থাকে তিন মাস। তাই বুস্টার ডোজ নিতে হবে।’

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল ইউনিট-সিডিসির কর্মকর্তা এস এম গোলাম কায়সার বলেন, ‘গণমাধ্যমের কাছে অনুরোধ থাকবে আপনারা সচেতনতা বাড়াতে কাজ করুন। যে মানুষগুলো মারা যাচ্ছে, তারা কেউ টিকা নেয়নি। কিন্তু জেলা ও উপজেলা হাসপাতালে টিকাদানের সুযোগ আছে। কেউ আক্রান্ত হলে যেন টিকা নেন।’

গত তিন বছরে জলাতঙ্কে মৃত্যু বাড়ার বিষয়টি তুলে ধরে ২০৩০ সালের মধ্যে তা শূন্যে নামানো সম্ভব হবে কি না, এমন প্রশ্নে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমরা আশা করছি সম্ভব। ২০২০ সালে যে মৃত্যু কম হয়েছিল, সেটি হয়েছিল ওই বছর করোনার কারণে মানুষ বাইরে বেশি না হওয়ায়। তার আগের বছরগুলোতে প্রতি বছর মৃত্যু ৪০ থেকে ৫০ জনের মধ্যে থাকত।’

২০১১ সালে বছরে ৮২ জন মানুষ জলাতঙ্কে মারা গিয়েছিলেন বলে সিডিসির তথ্যে উল্লেখ আছে।

দুই মাস কুকুরের টিকা বন্ধ

প্রাণীর আক্রমণ এবং জলাতঙ্কে মৃত্যু বাড়তে থাকলেও গত দুই মাসে পথকুকুরকে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা দেয়া বন্ধ থাকার তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের একজন কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে জানান, চলতি বছর প্রায় ৯০ হাজার কুকুরকে টিকা দেয়া হয়েছে। তবে গত দুই মাস এই কর্মসূচি বন্ধ ছিল।

কেন বন্ধ- এই প্রশ্নে সেই কর্মকর্তা বলেন, ‘২৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবসের প্রস্তুতির জন্য এই কর্মসূচি বন্ধ রাখা হয়। সামনে আবার কর্মসূচি শুরু হবে।’

রোগ নিয়ন্ত্রণ বিভাগের কমিউনিকেবল ডিজিজ কন্ট্রোল ইউনিট-সিডিসির কুকুর টিকাদান কর্মসূচির এমডিভির আওতায় পথকুকুরকে এই টিকা দেয়া হয়।

কুকুরকে দুই মাস টিকা দেয়া বন্ধ রাখার কারণ জানতে চাইলে এই বিভাগের কর্মকর্তা এস এম গোলাম কায়সার বলেন, ‘সরকারের অর্থবছর শেষ হয় জুনে। এরপর নতুন বরাদ্দ আসতে আসতে কিছু সময় লেগে যায়। সে সময় কুকুরকে টিকাদান বন্ধ রাখতে হয়।’

এই দুই মাস তাহলে ঝুঁকি তৈরি করে কি না- এমন প্রশ্নে সেই কর্মকর্তা বলেন, ‘বিষয়টি এমন না। আমাদের ক্যালেন্ডার ও হটস্পট অনুযায়ী টিকা দেয়া হয়। যেমন সামনে আমাদের টার্গেট আছে দেশের সব কুকুরকে তিন রাউন্ড টিকা দেব। আগে ঢাকায় দুই রাউন্ড এবং সারা দেশে এক রাউন্ড টিকা দেয়া হতো।’

বিড়ালকে টিকা না দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যারা এই প্রাণী পালেন, তারাই টিকা দিয়ে থাকেন। তবে ঘুরে বেড়ানো প্রাণীকে দেয়া হয় না। এগুলোকে ধরাও সহজ নয়। আর জলাতঙ্কের ক্ষেত্রে যেহেতু ৯৫ থেকে ৯৯ শতাংশ দায়ী কুকুর, তাই কুকুরকেই দেয়া হয়।

ভেট অ্যান্ড পেট কেয়ারের কনসালট্যান্ট রূপ কুমার বলেন, ‘জলাতঙ্ক সাধারণত কুকুর-শিয়ালের রোগ। আমাদের দেশে বা বিশ্বে জলাতঙ্কে আক্রান্ত প্রাণীর মধ্যে বিড়াল মাত্র ৪ শতাংশ। কুকুরের কামড় বা আঁচড় থেকে বিড়ালের শরীরে ভাইরাসটি ছড়ায়। তাই বিড়ালকেও দেয়া হয়।

‘তবে পোষ্য বিড়ালের ক্ষেত্রে ভ্যাকসিন দেয়ার হার বেশি, কারণ এদের মালিকরা হাসপাতাল বা ক্লিনিকে নেয়ার উদ্যোগ নেন।’

বেওয়ারিশ বিড়ালকে টিকার বাইরে রাখার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এসব প্রাণীকে তো ধরা মুশকিল। তবে একেবারে দেয়া হয় না এমন না। আর বাজেটের অভাবও এটা সমস্যা।’

জলাতঙ্ক বাড়ছে, শূন্যে নামানোর লক্ষ্য পূরণে সংশয়
বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রামে বেওয়ারিশ বিড়ালকে জলাতঙ্কের টিকা দিচ্ছেন ডা. রূপ কুমার। ছবি: নিউজবাংলা

সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতালের সহকারী পরিচালক মিজানুর রহমান আরও একটি বিষয়ের প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তিনি প্রাণীদের প্রতি সহনশীল হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। বলেন, ‘অনেকেই কুকুর দেখলে তাদের আক্রমণ করে। এটা না করে আচরণ বদলাতে হবে। তাদের প্রতি বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ করতে হবে।

‘আরেকটি বিষয় গুরুত্বপূর্ণ। সেটি হলো ডেথ রিভিউ। অর্থাৎ কোন এলাকায় মৃত্যু হয়েছে, সেই এলাকায় সামাজিকভাবে বসে সব কুকুরকে টিকা নিশ্চিত করতে হবে। আর কেউ কামড়ের শিকার হলে তাকে অবশ্যই হাসপাতালে নিয়ে আসতে হবে টিকার জন্য।’

আরও পড়ুন:
শিশুরোগ ‘হ্যান্ড ফুট মাউথ’ নিয়ে উদ্বেগ
জীবন যেভাবে বদলে গেল পুলিশ সুপারের
কুকুরেরও ঝরে আনন্দ-অশ্রু
‘ভুল রক্ত দেয়ায়’ হাসপাতালে প্রসূতির মৃত্যু, তদন্তে কমিটি
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যায় মাসুমের শাস্তি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
1 death due to dengue admission to hospital

ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, বাড়ছে হাসপাতালে ভর্তি

ডেঙ্গুতে ১ মৃত্যু, বাড়ছে হাসপাতালে ভর্তি দেশে গত বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নেয়া এক রোগী। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
বর্তমানে সারা দেশে ১ হাজার ৮২০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৩৮৮ জন এবং ঢাকার বাইরে ৪৩২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন।

কমছে না ডেঙ্গুর প্রকোপ। গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে ৫২৪ জন রোগী দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। আগের দিন মঙ্গলবার ডেঙ্গুতে সারা দেশে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ৪৬০ জন।

একই সময়ে ডেঙ্গুতে একজনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ নিয়ে মোট মৃত্যু দাঁড়াল ৫৫ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক বিবৃতিতে মঙ্গলবার এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ঢাকায় ৩৭৩ জন এবং ঢাকার বাইরে ১৫১ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বর্তমানে সারা দেশে ১ হাজার ৮২০ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ১ হাজার ৩৮৮ জন এবং ঢাকার বাইরে ৪৩২ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছেন।

এ বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ১৫ হাজার ৩৪৬ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১১ হাজার ৭৬৪ জন এবং ঢাকার বাইরে সারা দেশে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৫৮২।

একই সময়ে সারা দেশে ছাড়প্রাপ্ত রোগীর সংখ্যা ১৩ হাজার ৪৭১ জন। এর মধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১০ হাজার ৩৩৯ জন এবং ঢাকার বাইরে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৩ হাজার ১২২ জন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু তো আমরাই লালন-পালন করছি: স্বাস্থ্যসচিব
হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগী ভর্তির রেকর্ড
চুয়াডাঙ্গায় ৬ ডেঙ্গু রোগী
নগরে এডিস মশার লার্ভা, দেড় লাখ টাকা জরিমানা
ডেঙ্গু বাড়ছে কলকাতাতেও

মন্তব্য

বাংলাদেশ
665 were detected on the day without a death due to Corona

করোনায় মৃত্যুহীন দিনে শনাক্ত ৬৬৫

করোনায় মৃত্যুহীন দিনে শনাক্ত ৬৬৫ ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
গত ২৪ করোনা ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৬৫ জনের দেহে। নতুন শনাক্তদের ৪৯৪ জনই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে ৪ হাজার ৭২৮টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৬৫ জনের দেহে, শনাক্তের হার ১৪ দশমিক ০৭ শতাংশ।

দেশে দুই মাস পর গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।।

টানা ১৪ দিন ধরে করোনাভাইরাস শনাক্তের হার ৫ শতাংশের ওপরে থাকায় দেশে পঞ্চম ঢেউ নিশ্চিত হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে বলা যায়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বুধবার জানায়, এদিন সকাল ৮টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে ৪ হাজার ৭২৮টি নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৬৬৫ জনের দেহে। নতুন শনাক্তদের ৪৯৪ জনই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

এই সময়ে শূন্য মৃত্যু নিয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা ২৯ হাজার ৩৬০ জন। নতুন শনাক্ত রোগীদের নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন ২০ লাখ ২৩ হাজার ৮১০জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সেরে উঠেছেন ৪২৮ জন। সব মিলিয়ে দেশে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৬৪ হাজার ১৪৭ জন।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে ওই বছরের ৪ অক্টোবর।

গত ২১ জানুয়ারি দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ দেখা দেয়। প্রায় তিন মাস পর ১১ মার্চ তা নিয়ন্ত্রণে আসে। তিন মাস করোনা স্বস্তিদায়ক পরিস্থিতিতে ছিল। এরপর ধারাবাহিকভাবে বাড়তে শুরু করে সংক্রমণ। তারপর চতুর্থ ঢেউ শেষে এখন পঞ্চম ঢেউ আঘাত হানছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় মৃত্যু ১, শনাক্ত  ৬৭৮
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে সর্বোচ্চ শনাক্তের হার
পঞ্চম ঢেউয়ের তৃতীয় দিনে করোনায় ৫ মৃত্যু
পঞ্চম ঢেউয়ের দ্বিতীয় দিনে কমেছে শনাক্তের হার, মৃত্যু ১
করোনার পঞ্চম ঢেউয়ে বাংলাদেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Death by water rabies is no more

‘জলাতঙ্কে মৃত্যু আর নয়’

‘জলাতঙ্কে মৃত্যু আর নয়’ জলাতঙ্ক প্রাচীনতম সংক্রামক রোগের একটি। ছবি কোলাজ: নিউজবাংলা
জলাতঙ্ক শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। যদি কোন প্রাণী বিশেষ করে কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজী, শিয়াল কামড় বা আঁচড় দেয় সঙ্গে সঙ্গে সাবান পানি দিয়ে আক্রান্ত স্থান ১৫ মিনিট ধুতে হবে। এরপর ঠিক সময়ে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা নিলে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব।

অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস পালিত হচ্ছে আজ। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য বিষয় ‘জলাতঙ্ক: মৃত্যু আর নয়, সবার সঙ্গে সমন্বয়’। এতে জলাতঙ্ক, মৃত্যু ও সমন্বয় এ তিনটি বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।

জলাতঙ্ক প্রাচীনতম সংক্রামক রোগের একটি। প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে পানিভীতি, আলোভীতি, বায়ুভীতি হলেও এর শেষ পরিণতি মৃত্যু। তবে এ রোগ শতভাগ প্রতিরোধযোগ্য। যদি কোন প্রাণী বিশেষ করে কুকুর, বিড়াল, বানর, বেজী, শিয়াল কামড় বা আঁচড় দেয় সঙ্গে সঙ্গে সাবান পানি দিয়ে আক্রান্ত স্থান ১৫ মিনিট ধুতে হবে। এরপর ঠিক সময়ে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা নিলে এ রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব। তাই প্রয়োজন জনসচেতনতা বৃদ্ধি, সামাজিক আচরণ ও দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন। বাংলাদেশ সরকার, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও দেশীয় সংগঠনের পারস্পরিক সমন্বয়ের ভিত্তিতে মৃত্যুর হার শূন্যে আনা সম্ভব।

জলাতঙ্কের টিকা আবিষ্কারক বিজ্ঞানী লুই পাস্তুর ১৮৯৫ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর মারা যান। তার প্রয়াণ দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০০৭ সাল থেকে পৃথিবীব্যাপি বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

বাংলাদেশ সরকারের নানাবিধ স্বাস্থ্য উন্নয়নমূলক কার্যক্রমের ফলে জলাতঙ্ক রোগের সংক্রমণ কমে এসেছে। জুনোটিক ডিডিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম, রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর মাধ্যমে সারাদেশে জেলা ও উপজেলা হাসপাতাল পর্যায়ে ৩০০টির বেশি জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে।

এ ছাড়াও রাজধানীর মহাখালীতে সংক্রামক ব্যাধি হাসপাতাল ও ৫টি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং কামরাঙ্গীরচর ৩১ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে জলাতঙ্কের আধুনিক চিকিৎসা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে।

এ সব কেন্দ্রগুলোতে কুকুর বা অন্যান্য প্রাণির কামড়/আঁচড়ের আধুনিক চিকিৎসার পাশাপাশি বিনা মূল্যে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা দেয়া হচ্ছে। সরকারের পক্ষ থেকে প্রতি বছর প্রায় তিন লাখের বেশি জলাতঙ্ক সংক্রমণকারী প্রাণির কামড়/আঁচড়ের রোগীকে বিনা মূল্যে জলাতঙ্কের টিকা দেয়া হচ্ছে। এর ফলে জলাতঙ্কে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা অনেকাংশে কমে যাচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বাংলাদেশ সরকারের নীতিমালা অনুসারে বর্তমানে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিনের পূর্ণ ডোজ (তিনটি ০, ৩ ও ৭ দিনে) এক সপ্তাহে দেয়ার ফলে রোগীদের অর্থ ও সময় সাশ্রয় হচ্ছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে সকল সরকারি হাসপাতালের ডাক্তার, নার্স ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের প্রশিক্ষণের আওতায় আনা হয়েছে। যা দক্ষিণ এশিয়ায় জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক।

এর পাশাপাশি প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর প্রাণিদেহে জলাতঙ্কের জীবাণু শনাক্তের কাজ করে চলেছে। এতে করে নির্দিষ্ট স্থানে এ রোগের উপস্থিতি ও প্রাদুর্ভাব নির্ণয় করে মানুষ ও প্রাণিদেহে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

বর্তমানে বৈজ্ঞানিক ভিত্তির ওপর নির্ভর করে জলাতঙ্কের প্রধান উৎস কুকুরের মধ্যে ব্যাপকহারে জলাতঙ্ক প্রতিরোধী ভ্যাকসিন দেয়া হচ্ছে। ব্যাপকহারে কুকুরকে টিকাদান (এমডিভি) কার্যক্রমের আওতায় আনা হয়েছে। সারাদেশে ইতিমধ্যে ৬৪টি জেলায় প্রথম রাউন্ড, ১৭টি জেলায় দ্বিতীয় রাউন্ড এবং ৬টি জেলায় তৃতীয় রাউন্ড ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রমের মাধ্যমে কুকুরকে প্রায় ২২ লাখ ৫১ হাজার ডোজ জলাতঙ্ক প্রতিরোধী টিকা দেয়া হয়েছে। যা মানুষ ও প্রাণিদেহে জলাতঙ্ক নিয়ন্ত্রণে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম সামাজিক জনসচেতনতা বাড়ানোর লক্ষ্যে লিফলেট, সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন, ফেস্টুন, বিভিন্ন দিবস পালন, ক্রোড়পত্র প্রকাশ, স্কুল প্রোগ্রাম, জনবার্তাসহ সমাজের বিভিন্ন স্তরে কাজ করে যাচ্ছে। বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস ২০২২ কে সামনে রেখে দেশজুড়ে আলোচনা সভা, র‌্যালি, সেমিনারসহ নানাবিধ কার্যক্রম আয়োজন করা হয়েছে।

‘মুজিববর্ষে স্বাস্থ্য খাত, এগিয়ে যাবে অনেক ধাপ’ শ্লোগানকে সামনে রেখে জুনোটিক ডিজিজ কন্ট্রোল প্রোগ্রাম সব যুগোপযোগী কার্যক্রমের মাধ্যমে জলাতঙ্ক নির্মূলে এগিয়ে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
পাগলা কুকুরে ধরাশায়ী ১৫ নারী-কিশোর
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যায় মাসুমের শাস্তি
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যায় অভিযুক্তের শাস্তি দাবি
ভাতে বিষ মিশিয়ে কুকুর হত্যা

মন্তব্য

p
উপরে