× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Even with special facilities defaulted loans increased by 14 thousand crore
hear-news
player
google_news print-icon

বিশেষ সুবিধাতেও খেলাপি ঋণ বাড়ল সাড়ে ১৪ হাজার কোটি 

বিশেষ-সুবিধাতেও-খেলাপি-ঋণ-বাড়ল-সাড়ে-১৪-হাজার-কোটি 
নতুন যে খেলাপি ঋণ বেড়েছে, তার মধ্যে ১১ হাজার কোটি টাকার বেশি বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকে, সরকারি ব্যাংকে বেড়েছে ২ হাজার কোটি টাকার বেশি। তবে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর তুলনায় সরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণের হার তিন গুণেরও বেশি। রাষ্ট্রায়ত্ত ৬ ব্যাংকে যত ঋণ বিতরণ হয়েছে, তার মধ্যে প্রায় ২০ শতাংশই খেলাপি হয়ে আছে। আর এক বছরে অনেকটা বাড়লেও বিতরণ করা ঋণের মধ্যে খেলাপির হার ৫ শতাংশের কিছু বেশি।

খেলাপি কমাতে ঋণ পরিশোধের জন্য নানা সুবিধা দিয়েও লাগাম টানতে পারছে না কেন্দ্রীয় ব্যাংক। উল্টো বেড়েই চলছে খেলাপির পরিমাণ। ।

সব মিলিয়ে এখন খেলাপি ঋণের পরিমাণ ১ লাখ ৩ হাজার ২৭৩ কোটি টাকার বেশি। শতকরা হিসেবে মোট ঋণের প্রায় ৮ শতাংশ।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ ছিল ৮৮ হাজার ৭৩৪ কোটি টাকা, যা মোট ঋণের ৭ দশমিক ৬৬ শতাংশ।

সে হিসেবে গত ডিসেম্বরে সমাপ্ত অর্থবছরে এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১৪ হাজার ৫৩৯ কোটি টাকা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সর্বশেষ তথ্য বলছে, গত বছরের ডিসেম্বর শেষে ব্যাংকিং খাতের মোট ঋণ স্থিতি দাঁড়িয়েছে ১৩ লাখ ১ হাজার ৭৯৭ কোটি ২৬ লাখ টাকা।

সেপ্টেম্বর শেষে মোট ঋণ স্থিতি ছিল ১২ লাখ ৪৫ হাজার ৩৯১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এর মধ্যে খেলাপি এক লাখ এক হাজার ১৫০ কোটি টাকা, যা ছিল মোট ঋণের ৮ দশমিক ১২ শতাংশ।

গত বছরের জুন পর্যন্ত ব্যাংকিং খাতে মোট বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ১২ লাখ ১৩ হাজার ১৬৪ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ছিল ৯৯ হাজার ২০৫ কোটি টাকা। মার্চ থেকে জুন পর্যন্ত তিন মাসে খেলাপি ঋণ বেড়েছিল ৩ হাজার ৮৯৯ কোটি টাকা।

এর আগে জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত খেলাপি ঋণ বেড়েছিল ৬ হাজার ৮০২ কোটি টাকা।

নতুন যে খেলাপি ঋণ বেড়েছে, তার মধ্যে ১১ হাজার কোটি টাকার বেশি বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকে, সরকারি ব্যাংকে বেড়েছে ২ হাজার কোটি টাকার বেশি। এই পরিমাণ বাড়ার কারণে সরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণকে ছাপিয়ে গেল বেসরকারি ব্যাংক।

তবে বেসরকারি ব্যাংকগুলোর তুলনায় সরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণের হার তিন গুণেরও বেশি। রাষ্ট্রায়ত্ত ৬ ব্যাংকে যত ঋণ বিতরণ হয়েছে, তার মধ্যে প্রায় ২০ শতাংশই খেলাপি হয়ে আছে। আর এক বছরে অনেকটা বাড়লেও বিতরণ করা ঋণের মধ্যে খেলাপির হার ৫ শতাংশের কিছু বেশি।

এই এক বছরে সরকারি, বেসরকারি ও বিদেশি ব্যাংকগুলোর পরিস্থিতির অবনতি হলেও বিশেষায়িত তিন ব্যাংকের পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে। এই ব্যাংকগুলো খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে পেরেছে।

খেলাপি ঋণ কমাতে নানা সুবিধা

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে আ হ ম মুস্তফা কামাল অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব নেয়ার পর খেলাপি ঋণ আর এক টাকাও না বাড়ার ঘোষণা দিয়ে ঋণ নিয়মিতকরণ করতে নানা সুবিধা ঘোষণা করেন।

২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে ঋণ নিয়মিত করার সুবিধা দেয়া হয় শুরুতে। এতে কয়েক হাজার কোটি টাকার ঋণ নিয়মিত হয়।

২০২০ সালের মার্চে করোনার প্রাদুর্ভাবের পর কিস্তি না দিয়েও খেলাপিমুক্ত থাকার সুবিধা দেয় হয়। পুরো বছরই চালু থাকে এই সুবিধা।

২০২১ সালের শুরুতে কিস্তি না দিয়ে খেলাপিমুক্ত থাকার ঢালাও সুবিধা কিছুটা কমানো হয়। সে বছর নানা সময় কিস্তিুর একাংশ জমা রাখলেই খেলাপিমুক্ত থাকার সুযোগ দেয়া হয়।

প্রথমে বলা হয়, ডিসেম্বরের শেষ কর্মদিবসের মধ্যে ঋণের ২৫ শতাংশ পরিশোধ করেই খেলাপি হবেন না গ্রাহক। তবে করোনার সময় ব্যবসা বাণিজ্যের সমস্যার কথা বলে ব্যবসায়ীদের অনুরোধে জমা করার পরিমাণ কমানো হয়।

সবশেষ নির্দেশনা অনুযায়ী ঋণের কিস্তির ১৫ শতাংশ জমা দিলে খেলাপি না করার নির্দেশনা ছিল, যার মেয়াদ গত ৩১ ডিসেম্বর শেষ হয়েছে। মেয়াদ শেষ হলেও চলতি বছরের জানুয়ারিতে এ সুবিধা আরও ২০ দিন মৌখিকভাবে বাড়িয়ে দেয় কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

খেলাপির হার সবচেয়ে বেশি রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকে

২০২১ সালের ডিসেম্বর শেষে রাষ্ট্রীয় সোনালী, অগ্রণী, জনতা, রূপালী, বাংলাদেশ ডেভলপমেন্ট ও বেসিকে এ ছয় ব্যাংক মোট ঋণ বিতরণ করে ২ লাখ ৩৩ হাজার ২৯৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৪৪ হাজার ৯৭৭ কোটি টাকা। মোট ঋণের যা ১৯ দশমিক ২৮ শতাংশ।

এক বছরে এসব ব্যাংকের খেলাপি ঋণ বেড়েছে ২ হাজার ৭০৪ কোটি টাকা।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ছিল ৪২ হাজার ২৭৩ কোটি টাকা। ওই সময় বিতরণ করা ঋণের পরিমাণ ছিল ২ লাখ ২ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা।

টাকার অঙ্কে সরকারি ব্যাংককে ছাপিয়ে গেল বেসরকারি ব্যাংক

বেসরকারি ব্যাংকগুলো গত বছর পর্যন্ত ঋণ বিতরণ করেছে ৯ লাখ ৭০ হাজার ৪০৫ কোটি টাকা। এর মধ্যে খেলাপি ঋণ ৫১ হাজার ৫২০ কোটি টাকা এই লাফ দেয়ায় এখন সরকারি ব্যাংকের তুলনায় বেসরকারি ব্যাংকে খেলাপি ঋণ টাকার অঙ্কে বেশি।

তবে শতকরা হারের দিক দিয়ে এসব ব্যাংকে খেলাপি ঋণ সরকারি ব্যাংকের তুলনায় কম। মোট বিতরণ করা ঋণের ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ খেলাপি হয়ে আছে।

২০২০ সালের ডিসেম্বরে খেলাপি ঋণ ছিল ৪০ হাজার ৩৬১ কোটি টাকা বা মোট ঋণের ৪ দশমিক ৬৬ শতাংশ। এক বছরে খেলাপি ঋণ বেড়েছে ১১ হাজার ১৫৯ কোটি টাকা।

বিশেষায়িত তিন ব্যাংক

বিশেষায়িত কৃষি, প্রবাসীকল্যাণ ও রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন এ তিনটি ব্যাংকের খেলাপি ঋণ হয়েছে ৩ হাজার ৯৯০ কোটি টাকা। এ অঙ্ক তাদের বিতরণ করা ঋণের ১২ দশমিক ০২ শতাংশ। তারা বিতরণ করেছে মোট ৩৩ হাজার ১৯৬ কোটি টাকা।

আগের বছর এই ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণের মধ্যে খেলাপি ছিল ৪ হাজার ৬২ কোটি। অর্থাৎ এই ব্যাংকগুলোর পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

বিদেশি নয় ব্যাংক

বিদেশি মালিকানার নয় ব্যাংকের খেলাপি হয়েছে ২ হাজার ৭৮৫ কোটি টাকা, যা মোট বিতরণ করা ঋণের ৪ দশমিক ২৯ শতাংশ।

বিদেশি ব্যাংকের ঋণ বিতরণ হয় ৬৪ হাজার ৮৯৮ কোটি টাকা।

আগের বছর এই নয় ব্যাংকে বিতরণ করা ঋণের মধ্যে খেলাপি ছিল ২ হাজার ৩২ কোটি টাকা। অর্থাৎ এই এক বছরে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ বেড়েছে ৭৫৩ কোটি টাকা বা ৩৭ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
‘সংজ্ঞা শিথিল করায় ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপি বেড়েছে’
খেলাপিতে বিপর্যস্ত আর্থিক প্রতিষ্ঠান
ঋণ শোধে বিশেষ সুবিধা: দুই দিনেই পাল্টে গেল সিদ্ধান্ত
আবার এক লাখ কোটি টাকা ছাড়াল খেলাপি ঋণ
খেলাপি ঋণ আদায়ে লক্ষ্য থেকে অনেক দূরে ছয় ব্যাংক

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
If the dollar crisis is not resolved there will be no import of foreign fruits even during Ramadan

ডলার সংকট না কাটলে রমজানেও বিদেশি ফল আমদানি নয়

ডলার সংকট না কাটলে রমজানেও বিদেশি ফল আমদানি নয় বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। ফাইল ছবি
সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে টিসিবির জন্য এক কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল ও ৮ হাজার টন মসুর ডাল কেনার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আর রমজান সামনে রেখে টিসিবির পণ্যের দাম কমানোর পরিকল্পনা নেই বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

রমজান মাসে বরাবরই ফলের চাহিদা বেশি থাকে। এ সময়ে দেশি বিভিন্ন জাতের ফলের পাশাপাশি আমদানি করা ফলের বিক্রিও বেড়ে যায় কয়েক গুণ। কিন্তু বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয়ে ফল আমদানিতে ব্যাংকে ঋণপত্র (এলসি) খোলা বন্ধ রয়েছে। ডলারের চলমান সংকট না কাটলে আসন্ন রমজানে মাসেও ফল আমদানির জন্য এলসি খোলার সুযোগ তৈরি হচ্ছে না।

বুধবার সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমন তথ্য জানিয়েছেন।

বৈঠকে আসন্ন রমজান উপলক্ষে রাষ্ট্রীয় বিপণন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অফ বাংলাদেশের (টিসিবি) জন্য এক কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল ও ৮ হাজার টন মসুর ডাল কেনার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের এই দুটি ক্রয় প্রস্তাবসহ মোট ১৫টি প্রস্তাব পাস হয়েছে বৈঠকে।

সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক। সভায় উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ।

সভা শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব সাঈদ মাহবুব খান বলেন, ‘মোট ১৯৪ কোটি ৫৬ লাখ ৮০ হাজার টাকায় উন্মুক্ত পদ্ধতিতে সয়াবিন তেল ও মসুর ডাল কেনা হচ্ছে। প্রতি লিটার তেলের দাম পড়বে ১৭৬ টাকা ৮৮ পয়সা, যা আগের কেনাকাটার সময় ছিল ১৭৭ টাকা। তেল সরবরাহ করবে মেঘনা এডিবল অয়েল রিফাইনারি।

‘প্রতি কেজি ৯১ টাকা ৬০ পয়সা করে টিসিবির জন্য ৮ হাজার টন মসুর ডাল কেনার প্রস্তাব পাস করা হয়েছে। মোট দাম পড়বে ৭৩ কোটি ২৯ লাখ ৩২০ টাকা। তুরস্কের একটি কোম্পানির স্থানীয় এজেন্টের কাছ থেকে কেনা হয়েছে এই মসুর ডাল।’

রমজান সামনে রেখে টিসিবির সরবরাহ করা পণ্যের দাম কমানোর কোনো পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘দাম কমানোর সুযোগ নেই। প্রতি মাসেই টিসিবির জন্য পণ্য কিনতে হচ্ছে। রমজান সামনে রেখে একটু বেশি কিনতে হচ্ছে।’

ডলার সংকট কমলেই ফল আমদানি

ফল আমদানির জন্য এলসি (ঋণপত্র) খোলা যাচ্ছে না। আমদানি বাধাগ্রস্ত হওয়ায় বিদেশি ফলের দাম দিন দিন বেড়ে চলেছে। অথচ রোজায় ফলের চাহিদা থাকে ব্যাপক। আগামী মার্চের শেষ সপ্তাহে এবারের রমজান মাস শুরু হবে। রোজায় মাছ-মাংস, তেল-চিনির পাশাপাশি ফলমূলের চাহিদাও বেড়ে যায়। তবে এই মুহূর্তে আমদানি নিয়ন্ত্রিত থাকার কারণে ফল আমদানিতে সমস্যা হচ্ছে বলে ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করে আসছেন।

এ বিষয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি বলেন, ‘ফল তো আমাদের দেশে প্রচুর হচ্ছে। এখন আমাদের দেখতে হচ্ছে বৈদেশিক মুদ্রায় অতিরিক্ত চাপ যেন না পড়ে। এছাড়া দেশে যে ফল উৎপাদন হচ্ছে, সে সবেরও একটি মূল্য পাওয়া দরকার। যে জন্য এটি (এলসি) একটু সীমিত করা হয়েছে। সময় ভালো হলেই বিদেশ থেকে ফল আমদানির পথ খুলে দেয়া হবে।

ভোক্তাদের ফলাহারের চাহিদা পূরণে আপাতত দেশীয় ফলমূলের ওপর ভরসা করার পরামর্শ দিয়েছেন টিপু মুনশি।

তিনি বলেন, ‘এখন দরকার ডলার সেভ করা। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মধ্যে যেটা অপরিহার্য, সেটিতেই বেশি জোর দেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
বাংলাদেশের সাফল্য নিয়ে বিদেশে টেবিলে টেবিলে আলোচনা হয়: বাণিজ্যমন্ত্রী
দাম বাড়ানো না হলে বাজারে চিনি পাওয়া যাবে না: বাণিজ্যমন্ত্রী
রোজায় নিত্যপণ্যের দাম বাড়ালে ব্যবস্থা নিতে ডিসিদের নির্দেশ
কেন রমজানের আগেই সব কিনতে হবে, প্রশ্ন বাণিজ্যমন্ত্রীর 
‘৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশের কাতারে যেতে চাই’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
34 48 growth in premium collection for Zenith Islami Life

প্রিমিয়াম সংগ্রহে ৩৪.৪৮% প্রবৃদ্ধি জেনিথ ইসলামী লাইফের

প্রিমিয়াম সংগ্রহে ৩৪.৪৮% প্রবৃদ্ধি জেনিথ ইসলামী লাইফের জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ব্যানার। ছবি: সংগৃহীত
হিসাব অনুযায়ী, ২০২২ সালে জেনিথ ইসলামী লাইফ মোট প্রিমিয়াম সংগ্রহ করেছে ৩০ কোটি ১৯ লাখ টাকা, যা ২০২১ সালে ছিল ২২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সে হিসাবে গত বছর কোম্পানিটির প্রিমিয়াম সংগ্রহ বেড়েছে ৭ কোটি ৭৪ লাখ টাকা বা ৩৪.৪৮ শতাংশ।

গত বছর প্রিমিয়াম সংগ্রহে ৩৪.৪৮ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে চতুর্থ প্রজন্মের বেসরকারি জীবনবিমা কোম্পানি জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের।

কোম্পানিটি ব্যবস্থাপনা খাতে আগের বছরের চেয়ে ২.৬৭ শতাংশ কম ব্যয় করেছে।

বীমা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে (আইডিআরএ) জেনিথের জমা দেয়া হিসাব থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

হিসাব অনুযায়ী, ২০২২ সালে জেনিথ ইসলামী লাইফ মোট প্রিমিয়াম সংগ্রহ করেছে ৩০ কোটি ১৯ লাখ টাকা, যা ২০২১ সালে ছিল ২২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। সে হিসাবে গত বছর কোম্পানিটির প্রিমিয়াম সংগ্রহ বেড়েছে ৭ কোটি ৭৪ লাখ টাকা বা ৩৪.৪৮ শতাংশ।

কোম্পানিটি এককালীন ও গ্রুপ বিমা ছাড়া প্রথম বর্ষ প্রিমিয়াম সংগ্রহ করেছে ১৮ কোটি ২ লাখ টাকার, যা আগের বছরে ছিল ১৩ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। অর্থাৎ ২০২২ সালে কোম্পানিটির প্রথম বর্ষ প্রিমিয়াম সংগ্রহ বেড়েছে ৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা বা ৩৩.৬৮ শতাংশ।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Banking diploma is required for promotion of bank officers

ব্যাংক কর্মকর্তাদের পদোন্নতিতে লাগবে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা

ব্যাংক কর্মকর্তাদের পদোন্নতিতে লাগবে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা বাংলাদেশ ব্যাংকের ফটক। ফাইল ছবি
এ নির্দেশনা ২০২৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে। ২০২০ সালের ১৩ অক্টোবর এ সংক্রান্ত জারিকৃত সার্কুলার রহিত বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

ব্যাংকে কর্মরত অফিসার ও সমমানের পদ থেকে মহাব্যবস্থাপক ও সমমানের পদ পর্যন্ত প্রতিটি ধাপে পদোন্নতির ক্ষেত্রে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা পাস বাধ্যতামূলক করে বুধবার সার্কুলার জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এ নির্দেশনা ২০২৪ সালের ১ জানুয়ারি থেকে কার্যকর হবে।

২০২০ সালের ১৩ অক্টোবর এ সংক্রান্ত জারিকৃত সার্কুলার রহিত বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এর আগে ব্যাংকে কর্মরত অফিসার ও সমমানের পদ থেকে মহাব্যবস্থাপক ও সমমানের (প্রধান নির্বাহীর অব্যবহিত নিচের এক স্তর ব্যতীত অন্যান্য সব কর্মকর্তা, যে নামেই অভিহিত হোক না কেন) পদ পর্যন্ত প্রতিটি ধাপে পদোন্নতির ক্ষেত্রে বরাদ্দকৃত মোট নম্বরের মধ্যে ব্যাংকিং ডিপ্লোমা পরীক্ষার পাসের জন্য একটি নির্দিষ্ট নম্বর বরাদ্দ রাখতে হতো।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে জারিকৃত সার্কুলারে বলা হয়, ‘দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে ব্যাংকিং খাতের গুরুত্ব অপরিসীম। তাই এ খাতে মৌলিক ব্যাংকিং জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণে কর্মকর্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধির আবশ্যকতা অনস্বীকার্য। ব্যাংকিং আইন ও নিয়মাচার অনুশীলন সম্পর্কিত বিষয়ে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের জ্ঞান ও অভিজ্ঞতার একটি মানদণ্ড হলো ইনস্টিটিউট অফ ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ (আইবিবি) কর্তৃক পরিচালিত দুই পর্বের ব্যাংকিং ডিপ্লোমা ডিগ্রি অর্জন।

‘ব্যাংকিং ডিপ্লোমা পরীক্ষার পাঠ্যক্রম ব্যাংকিংবিষয়ক যাবতীয় তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক জ্ঞান অন্তর্ভুক্ত করে প্রণয়ন করা হয়, যেখানে ব্যাংকিং সম্পর্কিত প্রাথমিক ও মৌলিক জ্ঞান এবং পরীক্ষায় উচ্চতর ব্যাংকিং জ্ঞান ও দক্ষতা যাচাই করা হয়।’

সার্কুলারে বলা হয়, JAIBE DAIBB পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের ব্যাংকিং ডিপ্লোমা প্রদান করা হয়ে থাকে।

এতে আরও বলা হয়, ‘ব্যাংক কর্মকর্তাদের দক্ষতা, যোগ্যতা এবং সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সিনিয়র অফিসার অথবা সমতুল্য পদের পরবর্তী সকল পদে পদোন্নতির যোগ্যতার তালিকায় অন্তর্ভুক্তির জন্য ব্যাংকিং ডিপ্লোমা উভয় পর্ব পাস বাধ্যতামূলক করা হলো। তবে ব্যাংকিং কার্যক্রমে সরাসরি সংশ্লিষ্ট নয়, যেমন: ডাক্তার, প্রকৌশলী (পুরকৌশল, যন্ত্রকৌশল, তড়িৎকৌশল ও আইটি প্রফেশনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা) এবং প্রচার ও প্রকাশনা পদে নিয়োগকৃত কর্মকর্তাদের ক্ষেত্রে এ নির্দেশনা প্রযোজ্য নয়।’

আরও পড়ুন:
সোনালী ব্যাংকের সিনিয়র ম্যানেজমেন্ট টিমের সভা
মেহমুদ হোসেন ন্যাশনাল ব্যাংকে ফিরছেন
গ্লোবাল ইকোনমিক্সের ২ পুরস্কার পেল এনআরবিসি ব্যাংক
নোয়াখালীতে সোনালী ব্যাংকের বিভাগীয় সম্মেলন ও মতবিনিময়
বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বিশ্বব্যাংক সব সময় আগ্রহী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Daraj will lay off people in South Asia including Bangladesh

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় লোক ছাঁটাই করবে দারাজ

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় লোক ছাঁটাই করবে দারাজ দারাজের লোগো
‘বর্তমান বাজার বাস্তবতা’ বিবেচনায় দারাজের সিইও কর্মীদের ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্তের কথা সোমবার চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন । পরে তার লেখা সেই চিঠি প্ল্যাটফর্মটির ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয়।

চীনা ই-কমার্স জায়ান্ট প্রতিষ্ঠান আলিবাবার মালিকানাধীন অনলাইন বাণিজ্যিক প্ল্যাটফর্ম দারাজ বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ায় ১১ শতাংশ কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা দিয়েছে।

দারাজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিয়ার্ক মিক্কেলসেনের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, ‘বর্তমান বাজার বাস্তবতা’ বিবেচনায় দারাজের সিইও কর্মীদের ছাঁটাইয়ের সিদ্ধান্তের কথা সোমবার চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছেন । পরে তার লেখা সেই চিঠি প্ল্যাটফর্মটির ওয়েবসাইটেও প্রকাশ করা হয়।

চিঠিতে মিক্কেলসেন ইউক্রেন যুদ্ধ, সরবরাহব্যবস্থায় বিঘ্নতা, ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতি, উচ্চ কর এবং দারাজের আঞ্চলিক বাজারগুলোতে সরকারি ভর্তুকি প্রত্যাহারের মতো বিষয় কঠিন বাজার পরিস্থিতি তৈরি করছে বলে জানিয়েছেন।

বাংলাদেশসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় দারাজের আঞ্চলিক প্রায় ৩ হাজার কর্মী রয়েছে। দারাজের এই সিদ্ধান্তে প্রতিষ্ঠানটির বাংলাদেশে কর্মরত অন্তত ১০০ কর্মী ছাঁটাইয়ের মুখে পড়বেন বলে জানিয়েছেন বিয়ার্ক মিক্কেলসেন।

২০২১ সালে দারাজ জানায়, তাদের গ্রাহকের সংখ্যা প্রায় ৫০ কোটি ও কর্মীর সংখ্যা ১০ হাজার। গত দুই বছরে কোম্পানিটি পাকিস্তান ও বাংলাদেশে ১০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করেছে।

আরও পড়ুন:
দারাজ অ্যাপে প্রতিদিন বিপিএল দেখছেন ১০ লাখ মানুষ
দারাজ অ্যাপে বিপিএল দেখার সুযোগ
দারাজ সেল ক্যাম্পেইন ‘১১.১১’ শুরু ১১ নভেম্বর
আট বছরে দারাজ
‘কিপ ইট রিয়েল’ থিমে শুরু রিয়েলমি ফ্যান ফেস্ট

মন্তব্য

বাংলাদেশ
13 thousand crores owed by the government to 5 mobile companies

৫ মোবাইল কোম্পানির কাছে সরকারের বকেয়া ১৩ হাজার কোটি টাকা

৫ মোবাইল কোম্পানির কাছে সরকারের বকেয়া ১৩ হাজার কোটি টাকা
রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর কোম্পানি টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের কাছে সরকারের পাওনা এক হাজার ৬৯৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা।

বন্ধ হয়ে যাওয়া একটিসহ দেশের পাঁচ মোবাইল কোম্পানির কাছে সরকারের বকেয়ার পরিমাণ ১৩ হাজার ৪০৫ কোটি ২৪ লাখ টাকা বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার।

জাতীয় সংসদে কুষ্টিয়া-১ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম সরওয়ার জাহানের প্রশ্নের জবাবে মঙ্গলবার এ তথ্য জানান মোস্তফা জব্বার। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে প্রশ্নোত্তর টেবিলে উপস্থাপন করা হয়েছে।

মন্ত্রীর দেয়া তথ্য অনুযায়ী, গ্রামীণফোনের কাছ থেকে ১০ হাজার ৫৭৯ কোটি ৯৪ লাখ ৭৬ হাজার ১৩৫ টাকা, রবি আজিয়াটার কাছে ৭২৯ কোটি ২৩ লাখ ৯১ হাজার ৪৭৬ কোটি টাকা। বাংলালিংক ডিজিটালের কাছে ২০২১ সালের নিলামে বরাদ্দকৃত তরঙ্গের দ্বিতীয় কিস্তি এবং ২০২২ সালের তরঙ্গ নিলামের ডাউন পেমেন্ট বাবদ ২৭৩ কোটি ২৫ লাখ ৪১ হাজার ২৯২ টাকা।

রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল অপারেটর কোম্পানি টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের কাছে সরকারের পাওনা এক হাজার ৬৯৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা বলেও জানান মন্ত্রী।

মন্ত্রী জানান, টেলিটকের কাছে পাওনা টাকার মধ্যে এক হাজার ৫৮৫ কোটি ১৩ লাখ টাকা থ্রিজি স্পেকট্রাম অ্যাসাইনমেন্ট ফি বাবদ। স্পেকট্রাম চার্জ বাবদ ২৭ কোটি ১৫ লাখ, রেভিনিউ শেয়ার বাবদ ৩৩ কোটি ৭৯ লাখ ও এসওএফ বাবদ ৪৮ কোটি ৬৬ লাখ টাকা।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী জানান সিটিসেলের কাছে সরকারের পাওনা ১২৮ কোটি ৬ লাখ ৯৮ হাজার ৩২৩ টাকা পাওনা রয়েছে বলে জানান তিনি।

সরকার দলীয় সংসদ সদস্য মোহম্মদ হাবিব হাসানের প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ডাক ও টেলিযোগ বিভাগের আওতাধীন বিটিআরসি কর্তৃক গত ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ইস্যূকৃত বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং বা কলসেন্টার রেজিস্ট্রেশন সার্টিফিকেটধারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১৭৯টি। অপারেশনাল কল সেন্টারের সংখ্যা ৬৮ টি। এর মধ্যে আন্তর্জাতিক কল সেন্টার ৪৫ টি, অভ্যন্তরীন কল সেন্টারের সংখ্যা ২৩ টি।

ডাক অধিদপ্তরের প্রচলিত অর্থে কোনো কল সেন্টার নেই বলে জানান ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী। তিনি বলেন, দেশের ডাকঘরসমূহকে কল সেন্টারে রূপান্তরের পরিকল্পনা আপাতত সরকারের নেই। সকল ডাকঘরে এ ধরনের কল সেন্টার তৈরির জন্য পর্যাপ্ত ও দক্ষ জনবল প্রয়োজন। এছাড়াও ডাক বিভাগের প্রতিটি ইউনিটের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তার নাম ও টেলিফোন নম্বর ওয়েবসাইটে দেয়া রয়েছে।

চট্টগ্রাম-১১ আসনের সংসদ সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে মোস্তাফা জব্বার বলেন, ভারতের সঙ্গে আইপি ট্রানজিট লিজ প্রদান সংক্রান্ত একটি চুক্তি ২০১৫ সালের ৬ জুন স্বাক্ষরিত হয়েছে। চুক্তি অনুযায়ী দেশটির পূর্বাঞ্চলের প্রদেশগুলির জন্য প্রাথমিক অবস্থায় ১০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ বাংলাদেশ হতে লিজ প্রদান করা হয়। বিএসসিসিএল বর্তমানে ভারতের রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কোম্পানি বিএসএনএলকে ত্রিপুরায়য় ২০ জিবিপিএস ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথ রপ্তানি করছে।

আরও পড়ুন:
গেম খেলায় বাধা দেয়ায় লাঠির আঘাত, বৃদ্ধের মৃত্যু
সাইবার হামলার শিকার মোবাইলফোন অপারেটর: পলক
মোবাইলের আইএমইআই বদলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের কারখানা 
পারিশার ফোনটি ৪ হাজারে বিক্রি
৫৬ শতাংশ শিশু-কিশোরের হাতে মোবাইল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
IMF loan Revenue should be increased by Tk 2 lakh 34 thousand crore

আইএমএফের ঋণ: রাজস্ব বাড়াতে হবে ২ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা

আইএমএফের ঋণ: রাজস্ব বাড়াতে হবে ২ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা সোমবার পিআরআই কার্যালয়ে আইএমএফ-এর ঋণ ও সংস্কারের শর্ত নিয়ে কথা বলেন প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা। ছবি: নিউজবাংলা
পিআরআই’র নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘এনবিআরের কাঠামোগত সংস্কার ও মানসিকতার বদল করা না গেলে আইএমএফের শর্ত মেনে রাজস্ব খাতের সংস্কার বাস্তবায়ন করা কঠিন হবে। তবে এর বিকল্পও নেই। বড় ধরনের সংস্কার না হলে আসন্ন কিস্তি বন্ধ হয়ে যেতে পারে, যা অতীতে হয়েছে।’

রাজস্ব খাতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) শর্ত পূরণ করতে আগামী অর্থবছর থেকেই ধাপে ধাপে বাড়াতে হবে রাজস্ব আয়। ২০২৩-২৪ অর্থবছরে চলতি বছরের লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত ৬৫ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আয় করতে হবে।

আইএমএমের ঋণ কর্মসূচির সবশেষ বছর অর্থাৎ ২০২৫–২৬ অর্থবছরে এনবিআরকে বর্তমান লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় অতিরিক্ত আরও ২ হাজার ৩৪০ বিলিয়ন টাকা বা ২ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা আদায় করতে হবে বলে মনে করছে বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (পিআরআই)।

সোমবার পিআরআই কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর। এ সময় রাজস্ব খাতে আইএমএফের শর্ত মেনে সরকারের যেসব সংস্কার করতে হবে, সে ব্যাপারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রতিষ্ঠানটির গবেষণা পরিচালক এম এ রাজ্জাক।

পিআরআই বলছে, আইএমএফের ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ পেতে রাজস্ব আয় বাড়াতে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে এখনও সুস্পষ্ট দিকনির্দেশনা না পাওয়া গেলেও বাজেটের আগে ধাপে ধাপে তা আসবে। তবে আইএমএফের চাপে নয়; বরং নিজেদের সক্ষমতা বাড়াতেই এই সংস্কার করা প্রয়োজন বলে মনে করে সংস্থাটি।

মূল প্রবন্ধে এম এ রাজ্জাক বলেন, আইএমএফ-এর শর্ত মেনে ২০২৪, ২০২৫ ও ২০২৬ অর্থবছরে বাজেটের মূল রাজস্ব আদায়ের সঙ্গে অতিরিক্ত আরও ২ হাজার ৩৪০ হাজার কোটি টাকা বা ২ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত রাজস্ব আয় করতে হবে। এর মধ্যে ২০২৩-২৪ অর্থবছরে এনবিআরকে বর্তমান লক্ষ্যমাত্রার অতিরিক্ত ৬৫০ বিলিয়ন বা ৬৫ হাজার কোটি টাকা আয় করতে হবে।

এর পরের অর্থবছর অর্থাৎ ২০২৫ সালের জুনে সমাপ্ত বছরে বর্তমান বছরের লক্ষ্যমাত্রা থেকে অতিরিক্ত রাজস্ব আয় করতে হবে ১ হাজার ৩৮৩ বিলিয়ন টাকা বা ১ লাখ ৩৮ হাজার ৩০০ কোটি টাকা।

আইএমএমের ঋণ কর্মসূচির সর্বশেষ বছর অর্থাৎ ২০২৫–২৬ অর্থবছরে এনবিআরকে বর্তমান লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় অতিরিক্ত আরও ২ হাজার ৩৪০ বিলিয়ন টাকা বা ২ লাখ ৩৪ হাজার কোটি টাকা আদায় করতে হবে।

উল্লেখ্য, চলতি ২০২২–২৩ অর্থবছরের বাজেটে এনবিআরকে ৩ লাখ ৭০ হাজার কোটি টাকার রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা দেয়া হয়েছে।

পিআরআই গবেষণা পরিচালক আরও বলেন, রাজস্ব খাতের ক্ষেত্রে আইএমএফের সংস্কারগুলো বাস্তবায়ন করা চ্যালেঞ্জের হবে। তবে এটা অসম্ভব নয়। এ জন্য সরকারের সদিচ্ছার পাশাপাশি রাজনৈতিক-অর্থনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিও বদলাতে হবে।

এম এ রাজ্জাক জানান, আইএমএফ বলেছে আমাদের এই মুহূর্তে ট্যাক্স জিডিপি রেশিও বাড়াতে হবে। বর্তমানে তাদের হিসাবে এটা ৭ দশমিক ৮ শতাংশ। শর্ত অনুযায়ী জিডিপিতে করের অবদান সাত দশমিক ৮ থেকে ২০২৪ অর্থবছরে ৮ দশমিক তিন শতাংশ, ২০২৫ অর্থবছরে ৮ দশমিক ৮ শতাংশ এবং ২০২৬ অর্থবছরে ৯ দশমিক ৫ শতাংশে উন্নীত করতে হবে। এটা ম্যানেজ করা টাফ।

গত ৩-৪ বছরে রাজস্ব প্রবৃদ্ধি ১০ থেকে ১৩ ভাগের মধ্যে থাকছে। এজন্য রাজস্ব আদায় ১৮ শতাংশ বাড়াতে হবে। এ বছরের বাজেটে সরকারের এ বিষয়ে সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকতে হবে। এটা কম হওয়ার ফলে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে আমরা পর্যাপ্ত অর্থ ব্যয় করতে পারছি না।

আইএমএফ বিভিন্ন খাতে ভর্তুকি বন্ধের কথা বলেছে। এ বছর প্রবৃদ্ধির যে প্রাক্কলন করা হয়েছিল সেটা আইএমএফ কমিয়ে দিয়েছে।

এনবিআরের কাঠামোগত সংস্কার ও মানসিকতার বদল করা না গেলে আইএমএফের শর্ত মেনে রাজস্ব খাতের সংস্কার বাস্তবায়ন করা সরকারের জন্য কঠিন হবে বলে মনে করেন পিআরআই নির্বাহী পরিচালক আহসান এইচ মনসুর।

তিনি বলেন, ‘এই পরিমাণ রাজস্ব আদায় করা খুবই কঠিন। তবে এর কোনো বিকল্প নেই। বড় ধরনের সংস্কার সম্পন্ন না হলে আসন্ন কিস্তি বন্ধ হয়ে যেতে পারে, যা অতীতে হয়েছে। সংস্কার না হলে অর্জিত তো হবেই না বরং ট্যাক্স-জিডিপি রেশিও কমে যেতে পারে। গত ৫ বছরে প্রতি বছর একটু একটু করে এটা কমেছে।’

আহসান এইচ মনসুর বলেন, ‘অন্য দেশে কর হার বাড়িয়ে এটা আদায় সম্ভব। কিন্তু আমাদের দেশে কর হার এমনিতেই বেশি। এজন্য এটা আদায় করতে কষ্ট করতে হবে। এখানে সংস্কার গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই।’

আরও পড়ুন:
আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ
আইএমএফের ঋণ অনুমোদন স্বস্তির: ঢাকা চেম্বার
বাংলাদেশ যা চেয়েছিল, আইএমএফ দিচ্ছে তারও বেশি
৪৫০ কোটি ডলার ঋণ অনুমোদন দিল আইএমএফ
ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা বাংলাদেশের আছে: আইএমএফ ডিএমডি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Three brokerages got DSEs fix certification

তিন ব্রোকারেজ পেল ডিএসইর ফিক্স সার্টিফিকেশন

তিন ব্রোকারেজ পেল ডিএসইর ফিক্স সার্টিফিকেশন তিন ব্রোকারেজ হাউজকে ফিক্স সার্টিফিকেশন প্রদান করেছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)। ছবি: নিউজবাংলা
বিশ্বের অন্যান্য স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ডিএসই এপিআই (অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রাম ইন্টারফেস) ভিত্তিক বিএইচওএমএস চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করে। এরই প্রেক্ষিতে ৪৬টি ব্রোকারেজ হাউজ নাসডাক ম্যাচিং ইঞ্জিনে এপিআই সংযোগ নিয়ে নিজস্ব অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে লেনদেন করার জন্য ডিএসইতে আবেদন করে। এর ভিত্তিতে সিটি ব্রোকারেজ, ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজকে ডিএসইর ফিক্স সার্টিফিকেশন প্রদান করে।

তিন ব্রোকারেজ হাউজকে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ফিক্স সার্টিফিকেশন প্রদান করা হয়েছে। এগুলো হলো- সিটি ব্রোকারেজ, ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজ।

রাজধানীর নিকুঞ্জে ডিএসইর ট্রেনিং অ্যাকাডেমিতে সোমবার সার্টিফিকেশন প্রদান করেন ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম সাইফুর রহমান মজুমদার। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রোডাক্ট অ্যান্ড মার্কেট ডেভেলপমেন্ট ডিপার্টমেন্টের উপ-মহাব্যবস্থাপক সাইয়িদ মাহমুদ জুবায়ের।

ডিএসইর জন্য দিনটি স্মরণীয় উল্লেখ করে এম সাইফুর রহমান বলেন, ‘প্রযুক্তিগত উন্নয়নের সঙ্গে পুঁজিবাজারেরও উন্নয়ন সাধিত হচ্ছে। আট-দশ বছর আগে ডিএসই শুধুমাত্র একটি সেন্ট্রাল অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সংবলিত ম্যাচিং ইঞ্জিন কিনেছিল। কার্যত তখন অনেক ওএমএস একই সঙ্গে সংযোগ দেয়া যেতে পারে, তা বিবেচনা বা চিন্তা করা হয়নি। এখন ডিএসইর ট্রেকহোল্ডারদের ভিন্ন ভিন্ন ওএমএস সিস্টেম ব্যবহারের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।’

ওএমএসের অন্তর্ভুক্তির নতুন প্রক্রিয়া পরিচালনার ক্ষেত্রে সকলকে সতর্কতা অবলম্বনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ডিএসই এরইমধ্যে ফিক্স সার্টিফিকেশন দেয়ার সক্ষমতা অর্জন করেছে। এখন ডিএসই, প্রযুক্তি প্রদানকারী ও ব্রোকারেজ হাউজগুলো একসঙ্গে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। ডিএসই প্রতিনিয়ত নতুন নতুন প্রযুক্তির অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে পুঁজিবাজার উন্নয়নের জন্য কাজ করছে। ডিএসই অচিরেই আধুনিক প্রযুক্তি সংবলিত আন্তর্জাতিক মানের এক্সচেঞ্জে পরিণত হবে।’

সিটি ব্রোকারেজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মিসবাহ উদ্দিন আফফান ইউসুফ বলেন, ‘ফিক্সড সার্টিফিকেট গ্রহণ আমাদের জন্য অত্যন্ত গর্বের বিষয়। আমরা ২০২১ সালে সার্টিফিকেট গ্রহণ করি। আমরা সে সময় সার্টিফিকেটটি ফিক্সনক্স-এর কাছ থেকে নিয়েছিলাম। এর কিছুদিনের মধ্যে ডিএসই এই সার্টিফিকেট প্রদানের সক্ষমতা অর্জন করে। যা ডিএসইর জন্য একটি বড় অর্জন। এর মাধ্যমে আমরা বিনিয়োগকারীদের আরও উন্নত সেবা প্রদান করতে পারব।’

ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজের সিইও কাওসার আল মামুন বলেন, ‘বাংলাদেশের পুঁজিবাজারকে বিশ্বের সঙ্গে তাল মেলানোর জন্য যে প্রক্রিয়া, সেটি আজকে আমরা সম্পন্ন করতে পেরেছি। সারা বিশ্বে আজ আধুনিক পদ্ধতিতে লেনদেন করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে আমরা অনেক পিছিয়ে ছিলাম। কিন্তু বর্তমানে আমাদের লেনদেন প্রক্রিয়াকে আর্ন্তজাতিকমানে উন্নীত করতে পেরেছি। এখন শুধু বাকি রয়েছে রোবটিক ট্রেডিং। আশা করি, এটি আমরা অল্প সময়ে মধ্যে করতে পারব। আর পুঁজিবাজারে বিভিন্ন সেবা চালুর মাধ্যমে বিশ্বমানের পুঁজিবাজারে পরিণত হবে।’

শান্তা সিকিউরিটিজের সিইও কাজী আসাদুজ্জামান বলেন, ‘শান্তা সিকিউরিটিজ শুরু থেকেই বিনিয়োগকারীদের উন্নত সেবা প্রদানের জন্য সচেষ্ট। ডিএসই যখন নিজস্ব অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে লেনদেন সুবিধা চালু করে, শান্তা সিকিউরিটিজ দ্রুত এ সুবিধা গ্রহণের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করে। আমরা সব সময় বিনিয়োগকারীদের সুবিধা দেয়ার জন্য উন্নত প্রযুক্তি গ্রহণে প্রস্তুত রয়েছি। এ ক্ষেত্রে ডিএসইর সহযোগিতা চাই।’

ডিএসইর ভারপ্রাপ্ত প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা ও মহাব্যবস্থাপক তারিকুল ইসলাম বলেন, ‘এপিআই ইউএটির অনেক সুবিধা রয়েছে। এখানে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা ফিক্স করে দেয়া হয়েছে। নিজস্ব ওএমএস চালু করার জন্য একটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া পাড়ি দিতে হয়। এ ক্ষেত্রে ডিএসই সীমিত লোকবল নিয়ে আপনাদের সর্বোচ্চ সেবা দেয়ার চেষ্টা করেছে। ট্রেকহোল্ডারদের নিজস্ব ওএমএস চালু ও ব্যবহারের ক্ষেত্রে ডিএসইর আইটি বিভাগ সব সময় আপনাদের সমর্থন করবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, বিশ্বের অন্যান্য স্টক এক্সচেঞ্জের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে ডিএসই এপিআই (অ্যাপ্লিকেশন প্রোগ্রাম ইন্টারফেস) ভিত্তিক বিএইচওএমএস চালুর উদ্যোগ গ্রহণ করে। এরই প্রেক্ষিতে ৪৬টি ব্রোকারেজ হাউজ নাসডাক ম্যাচিং ইঞ্জিনে এপিআই সংযোগ নিয়ে নিজস্ব অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের মাধ্যমে লেনদেন করার জন্য ডিএসইতে আবেদন করে। এর ভিত্তিতে সিটি ব্রোকারেজ, ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজকে ডিএসইর ফিক্স সার্টিফিকেশন প্রদান করে।

এই প্রক্রিয়ায় সিটি ব্রোকারেজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজের ওএমএস ভেন্ডর ছিল ডিরেক্টএফএন এবং ফার্স্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজের ছিল ইকোসফট বিডি। ভেন্ডর প্রতিনিধি ডিরেক্টএফএন এশিয়া জোনের হেড অব বিজনেস অ্যান্ড স্ট্রাটেজি আমির শামস, ইকোসফটবিডি আইটির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা সোহেল রানা এবং সিটি ব্রোকারেজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজের পরামর্শক হাইমদলার অ্যান্ড কোং-এর কনসালটেন্ট নিজাম উদ্দিন আহমেদ।

নিজস্ব অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম গ্রহণের ধারাবাহিক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে তিনটি প্রতিষ্ঠান ইউজার এক্সিসটেন্স টেস্টিং কার্যক্রম সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন করে। প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (ওএমএস) চালুর পূর্ববর্তী ধাপ হলো- ফিক্স সার্টিফিকেশন। ওএমএস গো লাইভে যাওয়ার জন্য ডিএসইর ম্যাচিং ইঞ্জিন ও ব্রোকার হোস্টেড অর্ডার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের (ওএমএস) সামঞ্জস্য যাচাইয়ের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ধাপ হলো ফিক্স সার্টিফিকেশন। সিটি ব্রোকারেজ, ফাস্ট ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজ এবং শান্তা সিকিউরিটিজ ফিক্স সার্টিফিকেশনের জন্য টেস্ট কেসের কার্যক্রম ২০২৩ সালের জানুয়ারি মাসে সফলতার সঙ্গে সম্পন্ন করে।

আরও পড়ুন:
আশা জাগানোর পর ব্যাপক দরপতন পুঁজিবাজারে
ফের লেনদেন বাড়ছে পুঁজিবাজারে
৬ মাসে সি পার্লের ৫ গুণ দরবৃদ্ধির কারণ কী
পুঁজিবাজারে নজরদারিতে আদানির তিন প্রতিষ্ঠান
ইউএফএসের ২০৭ কোটি টাকা আত্মসাতে আইসিবির মামলা

মন্তব্য

p
উপরে