× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

বাংলাদেশ
Kushputul of Shabi VC in the hate column of DU
hear-news
player
print-icon

ঢাবির ঘৃণাস্তম্ভে শাবি ভিসির কুশপুতুল

ঢাবির-ঘৃণাস্তম্ভে-শাবি-ভিসির-কুশপুতুল ডাকসু ভবনের পাশে ঘৃণাস্তম্ভে শাবি ভিসির কুশপুতুল টানিয়েছেন বিসিএল নামের সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা
কুশপুতুল স্থাপন শেষে বিসিএল সভাপতি গৌতম চন্দ্র শীল বলেন, ‘শাবিতে যৌক্তিক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে যে নির্মম ও পৈশাচিক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, তা দুঃখজনক। এই ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অযোগ্যতা ও শিক্ষার্থীবিমুখ আচরণের পরিচায়ক।’

রাজাকারদের প্রতি ঘৃণা প্রদর্শনের লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) নির্মিত ঘৃণাস্তম্ভে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের কুশপুতুল টানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (বিসিএল)।

সোমবার সংগঠনটির সভাপতি গৌতম চন্দ্র শীলের নেতৃত্বে ডাকসু ভবনের পাশে ঘৃণাস্তম্ভে এই কুশপুতুল রাখা হয়।

কুশপুতুলে শাবি উপাচার্যের কোনো অবয়ব না থাকলেও সেখানে অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ লেখা আছে। বিসিএল নেতারা সেখানে এক জোড়া জুতাও ঝুলিয়ে দেন।

কুশপুতুলটিতে লেখা হয়, ‘শাবিতে যৌক্তিক দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে নির্মম হামলার হোতা ভিসি ফরিদের পদত্যাগ দাবি করছি ও এহেন জঘন্য আচরণে তার প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করছি।’

কুশপুতুল স্থাপন শেষে বিসিএল সভাপতি গৌতম চন্দ্র শীল বলেন, ‘শাবিতে যৌক্তিক আন্দোলনকে কেন্দ্র করে যে নির্মম ও পৈশাচিক পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে, তা দুঃখজনক। এই ঘটনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অযোগ্যতা ও শিক্ষার্থীবিমুখ আচরণের পরিচায়ক।’

শাবি ভিসি ও প্রক্টরের পদত্যাগ দাবি করে এই নেতা বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল, বিশেষ করে ছাত্রীবিমুখ আচরণে অভিযুক্ত রোকেয়া হলের প্রাধ্যক্ষের প্রতি হুঁশিয়ারি জানাচ্ছি। তিনিসহ সব প্রাধ্যক্ষ সাবধান হয়ে যান।’

কুশপুতল স্থাপনের সময় বিসিএল সাধারণ সম্পাদক মো. মাহফুজুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার রহমান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি নাঈম হাসান হৃদয়, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমানসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
শাবিতে হামলা: ক্যাম্পাসে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ
‘পুলিশ তুমি ফুল নাও, আমার ক্যাম্পাস ছেড়ে দাও’
শাবিতে হামলার প্রতিবাদে জাবিতে আন্দোলন দ্বিতীয় দিনে
ভিসি কার্যালয়ে তালা ঝোলালেন শাবি শিক্ষার্থীরা
শাবিতে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে চবিতে মানববন্ধন

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Unique ID data entry time increased again

ইউনিক আইডির ডাটা এন্ট্রির সময় ফের বাড়ল

ইউনিক আইডির ডাটা এন্ট্রির সময় ফের বাড়ল শ্রেণিকক্ষে ক্লাস নিচ্ছেন এক শিক্ষক। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা
আগামী ৩১ মের মধ্যে শিক্ষার্থীরা ডাটা এন্ট্রি ও আপলোড করতে পারবে। এর আগেও কয়েক দফা ডাটা এন্ট্রির সময় বাড়ানো হয়েছিল।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীর ইউনিক আইডি (ইউআইডি) তৈরির জন্য সফটওয়্যারের ডাটা এন্ট্রির সময় আবারও বাড়ানো হয়েছে। আগামী ৩১ মের মধ্যে শিক্ষার্থীরা ডাটা এন্ট্রি ও আপলোড করতে পারবে। এর আগেও কয়েক দফা ডাটা এন্ট্রির সময় বাড়ানো হয়েছিল।

বৃহস্পতিবার রাতে ইউনিক আইডির প্রকল্প পরিচালক শামসুল আলমের সই করা এক অফিস আদেশে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ইউনিক আইডির মাধ্যমে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মৌলিক ও শিক্ষাসংক্রান্ত সব তথ্য সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার।

অফিস আদেশে বলা হয়েছে, সব বিভাগের জন্য ডাটা এন্ট্রির সময়সীমা আগামী ২০ মে পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়েছিল। ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে ডাটা এন্ট্রির সময়সীমা ৩১ মে পর্যন্ত পুনরায় নির্ধারণ করা হয়েছে।

যেভাবে ডাটা এন্ট্রি করতে হবে

ব্যানবেইসের ওয়েবসাইট থেকে (www.banbeis.gov.bd) থেকে IEIMS মেনুতে গিয়ে ইউনিক আইডির লাইভ সার্ভারে ক্লিক করে CRVS Institution Login page-এ যেতে হবে। অথবা http://crvs-institute.banbeis.gov.bd/তে ক্লিক করে CRVS Institution Log in page-এ যেতে হবে।

সফটওয়্যারে এন্ট্রি ও আপলোডের দায়িত্বে শিক্ষকদের ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড তৈরি করতে হবে। প্রতিষ্ঠানের প্রধান পাসওয়ার্ড বদলাতে পারবেন। অ্যাডমিন হিসেবে প্রতিষ্ঠানপ্রধান সর্বোচ্চ পাঁচটি ইউজার আইডি তৈরি করতে পারবেন। তবে ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড দায়িত্বপ্রাপ্ত শিক্ষক ছাড়া হস্তান্তরযোগ্য নয়।

ইউনিক আইডি কেন

প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মৌলিক ও শিক্ষাসংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য এক জায়গায় রাখার জন্য তৈরি করা হচ্ছে ইউনিক আইডি। শিক্ষার্থীর বয়স ১৮ বছর হলে এই আইডি জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) রূপান্তরিত হবে।

ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরির দায়িত্বে আছে বাংলাদেশ শিক্ষাতথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইস)। এ ছাড়া প্রাক-প্রাথমিক থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরি করছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

কেন শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিক আইডি তৈরি করা হচ্ছে এমন প্রশ্নে প্রকল্প পরিচালক অধ্যাপক শামসুল আলম বলেন, ‘কোনো শিশু জন্মগ্রহণ করলেই স্থানীয় সরকার বিভাগের অফিস অফ রেজিস্ট্রার জেনারেলের আওতায় তার জন্ম নিবন্ধন হয়। আর ১৮ বছর পূর্ণ হওয়া সবার জন্য আছে জাতীয় পরিচয়পত্র।’

তিনি বলেন, ‘তবে যারা প্রাইমারি, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থী, অর্থাৎ যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে তারা এই সিস্টেমের বাইরে। এ জন্য তাদের সিস্টেমের মধ্যে আনতেই ইউনিক আইডি তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

ফরমে যেসব তথ্য দিতে হয়

স্ট্যাবলিশমেন্ট অফ ইন্টিগ্রেটেড এডুকেশনাল ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (আইইআইএমএস) প্রকল্পের আওতায় তৈরি করা চার পৃষ্ঠার ফরমে শিক্ষার্থীদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

ফরমে শিক্ষার্থীর নাম, জন্মনিবন্ধন নম্বর, জন্মস্থান, জেন্ডার, জাতীয়তা, ধর্ম, অধ্যয়নরত শ্রেণি, রোল নম্বর, বৈবাহিক অবস্থা, প্রতিবন্ধিতা (ডিজ-অ্যাবিলিটি), রক্তের গ্রুপ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কি না, মা-বাবার নামসহ বেশ কিছু তথ্যের ঘর রয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইউনিক আইডির ডাটা এন্ট্রি শুরু
ইউনিক আইডি: ফরম পূরণে ভোগান্তির শেষ নেই
ইউনিক আইডি করতে জন্ম নিবন্ধনের জটিলতা কেন
শিক্ষার্থীরা ইউনিক আইডি পাবে কবে?
ইউনিক আইডির তথ্যছক পূরণ স্থগিত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Demand for 20 percent allocation of budget in education sector

শিক্ষা খাতে বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ দাবি

শিক্ষা খাতে বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ দাবি জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে মাদ্রাসা শিক্ষক নেতারা। ছবি: নিউজবাংলা
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেটে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের বাজেট ১৫ হাজার কোটি টাকা এবং সব শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে শিক্ষা খাতে মোট বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ প্রয়োজন।

বেসরকারি শিক্ষকদের পূর্ণাঙ্গ উৎসব ভাতা ও মাদ্রাসাসহ সব শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের জন্য আগামী বাজেটে শিক্ষা খাতে বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ দেয়ার দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মাদ্রাসা জেনারেল টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমজিটিএ)।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে শুক্রবার সকালে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য দেন মাদ্রাসা জেনারেল টির্চাস অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘গত ২০২১-২০২২ অর্থবছরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা খাতে বরাদ্দ ছিল ২৬ হাজার ৩১৪ কোটি টাকা, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা খাতে বরাদ্দ ছিল ৩৬ হাজার ৪৮৬ কোটি টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা খাতে বরাদ্দ ছিল মাত্র ৯ হাজার ১৫৩ কোটি টাকা।

আরও বলা হয়, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা খাত থেকে কারিগরি ও মাদ্রাসায় বরাদ্দ কম থাকায় মাদ্রাসা শিক্ষায় তেমন উন্নতি হয়নি। তাই ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের বাজেটে কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের বাজেট ১৫ হাজার কোটি টাকা এবং সব শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের লক্ষ্যে আসন্ন বাজেটে শিক্ষাখাতে মোট বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ প্রয়োজন।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ মাদ্রাসা জেনারেল টির্চাস অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. হারুন অর রশিদ বলেন, ‘শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতির অগ্রগতি সম্ভব নয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে শিক্ষার বিকল্প নেই। তাই শিক্ষা খাতে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দের প্রয়োজন। ’

সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব ও স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. শাহজাহান আলম শাজু বলেন, ‘এই সরকারের আমলে আমাদের প্রাপ্তির পাশাপাশি অপ্রাপ্তিও রয়েছে। এ সব অপ্রাপ্তি দূর করতে হলে পুরো শিক্ষা ব্যবস্থাকে জাতীয়করণের আওতায় আনতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে সরকারি নিয়মে শিক্ষকদের মেডিক্যাল ও বাড়ি ভাড়া দেয়া ও বেসরকারি শিক্ষকদের বদলি প্রথা চালুর দাবি জানানো হয়।

আলিম, ফাজিল ও কামিল মাদ্রাসায় প্রভাষকদের আট বছর পূর্তিতে ৫০ শতাংশ হিসেবে সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি প্রদান ও ১৬ বছর পূর্ণ হলে সব প্রভাষকদের সহকারী অধ্যাপক পদে পদোন্নতি দেয়ারও দাবি জানানো হয়।

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা এমপিওভুক্তকরণ ও নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তকরণেরও দাবি তাদের।

সংগঠনের মহাসচিব মো. শান্ত ইসলামের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন- স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক সাইদুর রহমান পান্না, বিএমজিটিএর স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম, সুলতান আহমেদ, মেহেদি হাসান সরকার, ফিরোজ আলম, কে এম শামিম, মো. এলিন তালুকদার, সহসভাপতি আব্দুস সাকুরসহ প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
গাড়ি ফেরত দিলেন সেই প্রকৌশলী
জাতীয় বাজেটের এক শতাংশ সংস্কৃতি খাতে বরাদ্দের দাবি
ছুটি শেষে প্রাথমিকে ক্লাস চলবে যেভাবে
বাজেটে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ব্র্যান্ড প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব
কারিগরি শিক্ষাক্রম পরিমার্জন করা হবে: শিক্ষামন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Recruitment of 45000 teachers Second phase examination begins

৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু

৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ: দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়েছে। ফাইল ছবি
শুক্রবার বেলা ১১টায় প্রথম ধাপে ২২টি জেলার মধ্যে ১৪টির সব উপজেলা এবং ৭টি জেলার কয়েকটি উপজেলায় পরীক্ষা শুরু হয়েছে। পরীক্ষা চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। এদিন ৪ লাখ ৬৬ হাজার ১০০ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়েছে।

এ নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নিতে আবেদন করেছেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ জন। সেই হিসাবে প্রতি পদের জন্য লড়ছেন ২৯ জন।

শুক্রবার বেলা ১১টায় প্রথম ধাপে ২২টি জেলার মধ্যে ১৪টির সব উপজেলা এবং ৭টি জেলার কয়েকটি উপজেলায় পরীক্ষা শুরু হয়েছে। পরীক্ষা চলবে দুপুর ১২টা পর্যন্ত। এদিন ৪ লাখ ৬৬ হাজার ১০০ জন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেবেন।

আর প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক পদের তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা হবে আগামী ৩ জুন। ওই দিন বন্যার কারণে সিলেট জেলার স্থগিত পরীক্ষাও অনুষ্ঠিত হবে।

দ্বিতীয় ধাপে যেসব জেলায় পরীক্ষা

দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহী, খুলনা, ফরিদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, বরিশাল ও রংপুর জেলার সব উপজেলায় পরীক্ষা হবে।

নওঁগা জেলার সদর, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, রানীনগর, পোরশা, সাপাহার উপজেলা; নাটের জেলার বাগাতিপাড়া, বড়াইগ্রাম, গুরুদাশপুর, লালপুর; সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, সদর ও তাড়াশ উপজেলা; কুষ্টিয়া জেলার খোকসা, সদর ও মিরপুর; ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুণ্ডু, সদর, কালীগঞ্জ; যশোর জেলার অভয়নগর, চৌগাছা, সদর, বাঘারপাড়া; সাতক্ষীরা জেলার সদর, দেবহাটা, কলারোয়া, কালীগঞ্জ; বাগেরহাট জেলার মোল্লারহাট, মোংলা, মোড়েলগঞ্জ, কচুয়া, শরণখোলা; জামালপুর জেলার সদর, মাদারগঞ্জ, মেলান্দহ; ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা, সদর, নান্দাইল, ফুলপুর, তারাকান্দা, ত্রিশাল উপজেলা; নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ি, মদন, মোহনগঞ্জ, সদর, পূর্বধলা উপজেলা; কিশোরগঞ্জ জেলার সদর, কুলিয়ারচর, মিঠামইন, নিকলী, পাকুন্দিয়া, তাড়াইল; টাঙ্গাইল জেলার কালীহাতি, মধুপুর, মির্জাপুর, নাগরপুর, সফিপুর, বাসাইল উপজেলা; রাজবাড়ি জেলার কালুখালি, গোয়ালন্দ; কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার, হোমনা, লাকসাম, লালমাই, সদর দক্ষিণ, মনোহরগঞ্জ, মুরাদনগর, নাঙ্গলকোট, তিতাস উপজেলা; নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ, চাটখিল, কোম্পানীগঞ্জ, হাতিয়া উপজেলা; পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর, নেছারাবাদ, সদর; পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া, মির্জাগঞ্জ, সদর, রাঙ্গাবালি, দুমকি উপজেলা; সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার, জগন্নাথপুর, জামালগঞ্জ, শাল্লা, সদর, তাহিরপুর উপজেলা; হবিগঞ্জ জেলার সদর, লাখাই, মাধবপুর, নবীগঞ্জ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা; কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী, রাজারহাট, রাজিবপুর, রৌমারী, উলিপুর উপজেলা; গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় পরীক্ষা হবে।

গত ১২ মে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০২০-এর প্রথম পর্বে ২২ জেলার লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে ৪০ হাজার ৮৬২ জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হয়।

গত ১০ মার্চ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় এপ্রিলে পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সভায় আরও জানানো হয়, সহকারী শিক্ষকের ৩২ হাজার ৫৭৭টি শূন্য পদে নিয়োগের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ২০২০ সালের ২০ অক্টোবর বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। করোনাভাইরাস মহামারির কারণে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি।

ইতোমধ্যে অবসরজনিত কারণে আরও ১০ হাজারেরও বেশি সহকারী শিক্ষকের পদ শূন্য হয়ে পড়েছে। এতে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষক ঘাটতি দেখা দিয়েছে।

এ সমস্যার সমাধানে মন্ত্রণালয় আগের বিজ্ঞপ্তির শূন্য পদ ও বিজ্ঞপ্তির পরের শূন্য পদ মিলিয়ে প্রায় ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

২০২০ সালের ১৯ অক্টোবর প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক পদে সাড়ে ৩২ হাজার জনকে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

বিজ্ঞপ্তিতে প্রাক-প্রাথমিকে ২৫ হাজার ৬৩০টি এবং প্রাথমিকে ৬ হাজার ৯৪৭টি শূন্য পদের কথা উল্লেখ রয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সহকারী শিক্ষক পদে জাতীয় বেতন স্কেল ২০১৫-এর ১৩তম গ্রেডে অস্থায়ীভাবে নিয়োগ দেয়া হবে। এই গ্রেড অনুযায়ী শিক্ষকদের বেতন হবে ১১ হাজার থেকে ২৬ হাজার ৫৯০ টাকা।

নিয়ম অনুযায়ী বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের দিন থেকে সর্বনিম্ন ২১ বছর এবং করোনার কারণে সাধারণ ছুটি শুরুর তারিখ অর্থাৎ চলতি বছরের ২৫ মার্চ পর্যন্ত যাদের বয়স সর্বোচ্চ ৩০ বছর, তারা আবেদন করতে পারবেন। মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে এ বয়সসীমা হবে ৩২ বছর।

আরও পড়ুন:
প্রাথমিকে নিয়োগ: মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ কমিটি সংশোধন
প্রাথমিকে শিক্ষক পদে মৌখিক পরীক্ষা: নম্বর বিভাজন যেভাবে
ডিজিটাল ডিভাইসে পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রশ্নের সমাধান দিতেন তারা
বন্যা: পেছাল সিলেটের প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Belayet 55 will take the admission test at DU

ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষা দেবেন ৫৫ বছরের বেলায়েত

ঢাবিতে ভর্তি পরীক্ষা দেবেন ৫৫ বছরের বেলায়েত বেলায়েত শেখের ভর্তি পরীক্ষার প্রবেশপত্র। ছবি: নিউজবাংলা
বেলায়েতের বাড়ি গাজীপুরের শ্রীপুরে। তার দুই ছেলে ও এক মেয়ে আছে। বিবাহিত বড় ছেলে ব্যবসা করছেন। ছোট ছেলে শ্রীপুর ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়ছেন।

শিক্ষার জন্য বয়স যে কোনো বাধা নয়, সেটা আরেকবার প্রমাণ করলেন বেলায়েত শেখ। ৫৫ বছর বয়সী এ ব্যক্তি অংশ নিচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষায়।

ঢাবির সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার জন্য বেলায়েত ফরম পূরণ করেছেন। আগামী ১১ জুন এ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা হবে।

বেলায়েতের বাড়ি গাজীপুরের শ্রীপুরে। তার দুই ছেলে ও এক মেয়ে আছে। বিবাহিত বড় ছেলে ব্যবসা করছেন। ছোট ছেলে শ্রীপুর ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়ছেন।

বেলায়েতের বড় ছেলের স্ত্রীও একটা কলেজে একাদশ শ্রেণিতে পড়ছেন। গাজীপুরে বীর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে স্নাতক প্রথম বর্ষে পড়ার সময় ২০১৭ সালে একমাত্র মেয়েকে বিয়ে দেন বেলায়েত।

নতুন করে শুরু

বেলায়েত শেখের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ১৯৮৩ সালে তিনি এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। সে সময় বাবা গুরুতর অসুস্থ হয়ে যাওয়ায় সংসারের হাল ধরতে হয়েছে। পরে তিনি আর শিক্ষাজীবন সচল রাখতে পারেননি।

বেলায়েত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি নিজে যেহেতু পড়তে পারিনি, তাই ভাইদের লেখাপড়া করিয়ে উচ্চশিক্ষিত করতে চেয়েছিলাম, কিন্তু সেটাও পারিনি। এরপর নিজের সন্তানদের পড়াতে চেয়েছিলাম। তারাও অর্ধেক করে আর আগ্রহ দেখায়নি।

‘পরে তাদের প্রতি রাগ করে ৫০ বছর বয়সে ২০১৭ সালে নবম শ্রেণিতে ভর্তি হয়ে লেখাপড়া শুরু করি। সে সময় আমার ছোট ছেলে ক্লাস এইটে পড়াশোনা করছে।’

২০১৯ সালে বেলায়েত ঢাকার বাসাবোর দারুল ইসলাম আলিম মাদ্রাসা থেকে এসএসসি পাস করেন। আর ২০২১ সালে তিনি রাজধানীর রামপুরার মহানগর কারিগরি স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন।

এসএসসিতে বেলায়েত হোসেনের জিপিএ ৪.৪৩। আর এইসএসসিতে তার জিপিএ ছিল ৪.৫৮।

বেলায়েত বলেন, ‘এইচএসসিতে সাত মাস পড়ে পরীক্ষা দিয়েছি। অনেক সময় রাত জেগেও পড়ালেখা করেছি।’

বর্তমানে বেলায়েত শ্রীপুরের মাওনার সাইফুর’স শাখায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির কোচিং করছেন।

পরিবার চলছে কীভাবে

বর্তমানে পরিবারের ব্যয়ভার কীভাবে বহন করছেন জানতে চাইলে বেলায়েত বলেন, ‘এক মাস ধরে আমার বড় ছেলেই সংসার চালাচ্ছে। সে স্যানিটারির ব্যবসা করে।

‘আর আমি দৈনিক করতোয়া পত্রিকায় শ্রীপুর প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করছি। পড়ার ফাঁকে ফাঁকে কিছু নিউজ করলে মানুষজন কিছু টাকা-পয়সা দেয়।’

কেমন ছিল ক্লাসে ফেরার অভিজ্ঞতা

২০১৭ সালের যে সময় থেকে বেলায়েত শেখ পড়াশোনা শুরু করেন, তখন থেকে এই পর্যন্ত অভিজ্ঞতা কেমন জানতে চাইলে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘শুরুর দিকে এটা আমার জন্য একটু কঠিনই ছিল। কারণ সে সময় আমার কাছের মানুষজনও আমাকে নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করত, তবে একটা সময় গিয়ে সেটা ঠিক হয়ে যায়। এখন আমার বউ আমি কোন সময় ক্লাসে যাব, সেটা স্মরণ করিয়ে দেয়।’

সহপাঠীদের আচরণ কেমন ছিল জানতে চাইলে তিনি বলেন, “যাদের সঙ্গে ক্লাস করেছি, তাদের কাছ থেকে খারাপ কোনো অভিজ্ঞতার শিকার হইনি। আমার সঙ্গে যেসব মেয়ে ক্লাস করে, তারা আমাকে ‘আঙ্কেল’ ডাকে। আর আমি তাদের ‘আম্মু’ ডাকি।

“এক ছেলে আমাকে ‘বুড়া’ ডেকেছিল। পরে তাকে আমি ঝাড়ি দিয়ে বলেছি, ‘এই ছেলে আমি কি বুড়া হইছি? আমাকে ‘দাদা ভাই’ না হয় ‘বড় ভাই’ বা ‘আঙ্কেল’ ডাকবি।’ এটা নিয়ে তারা হাসাহাসি করে বেশি।”

বেলায়েত বলেন, ‘আমার নিজেকে বয়স্ক লাগে না; ইয়ংয়ের মতোই লাগে। কিছু চুল পেঁকে গেছে। এগুলো কালি দিয়ে রাখি। কারণ কালি দিয়ে না রাখলে এগুলোর জন্য নিজেকে বয়স্ক মনে হয়। আর তখন মনটা দুর্বল হয়ে যায়।’

সংসার পরিচালনা এবং কাজ করেও যে লেখাপড়া করা যায়, সেটা বর্তমান প্রজন্মকে দেখাতে চান বেলায়েত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পেতে সবার কাছে দোয়াও চেয়েছেন তিনি।

আরও পড়ুন:
ঢাবি মেডিক্যাল সেন্টারে অনশনে বসা রনির মান ভাঙালেন উপাচার্য
মেডিক্যাল সেন্টারের আধুনিকায়নে ‘পা স্যাক্রিফাইস’ করবেন ঢাবি ছাত্র
ঢাবির প্রতিবন্ধী কোটায় যুক্ত হলো স্নায়ু বিকাশগত প্রতিবন্ধিতা
শর্ত ভঙ্গ করে পিএইচডি, ঢাবি শিক্ষককে সতর্কবার্তা
ঢাবির ভর্তি পরীক্ষা এবারও বিভাগীয় শহরে, শুরু ৩ জুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Mausis recruitment test canceled due to leak of question papers

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় মাউশির নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় মাউশির নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল মাউশির অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদের পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। ফাইল ছবি
মাউশির অফিস আদেশে বলা হয়, অনিবার্য কারণবশত অধিদপ্তরের অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদের লিখিত পরীক্ষা বাতিল করা হলো।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদের লিখিত পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাতে মাউশি পরিচালক অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরীর সই করা অফিস আদেশ থেকে এ তথ্য জানা যায়।

এতে বলা হয়, অনিবার্য কারণবশত মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক পদের লিখিত পরীক্ষা বাতিল করা হলো।

গত ১৩ মে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরাধীন অফিস সহকারী কাম-কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক নিয়োগের এমসিকিউ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকার ৬১টি কেন্দ্রে এই পরীক্ষা হয়। ৫১৩টি পদের জন্য পরীক্ষার্থী ছিলেন ১ লাখ ৮৩ হাজার।

ইডেন কলেজ কেন্দ্র থেকে ওইদিন প্রশ্নপত্রের উত্তরসহ চাকরি প্রার্থী সুমন জোয়ার্দার নামে একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার প্রবেশপত্রের পেছনে ৭০ নম্বরের উত্তর লেখা ছিল। এরপর এই ঘটনায় আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আরও পড়ুন:
টিউশনসহ অন্যান্য ফি নিতে পারবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
সিনিয়র শিক্ষকদের তথ্য জানতে চাইল মাউশি
গ্রন্থাগারিক নিয়োগের তথ্য জানতে চায় সরকার
স্কুলে টিফিন নিষেধ
স্কুল খুলতে প্রস্তুত মাউশি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
8 percent pass in LLB final round

এলএলবি শেষ পর্বে ৮৬ শতাংশ পাস

এলএলবি শেষ পর্বে ৮৬ শতাংশ পাস জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফটক। ছবি: সংগৃহীত
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এলএলবি শেষ পর্ব পরীক্ষা শুরু হয় গত বছরের ১৯ নভেম্বর। আর শেষ হয় চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০১৯ সালের এলএলবি শেষ পর্ব পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

পরীক্ষায় সারা দেশে ১০ হাজার ৭১১ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করেন। গড় পাসের হার ৮৬ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক (জনসংযোগ) আতাউর রহমান এ তথ্য জানান।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রকাশিত ফলাফল সম্পর্কে কোনো আপত্তি থাকলে এক মাসের মধ্যে লিখিতভাবে জানাতে হবে। নির্ধারিত সময়ের পর এ-সম্পর্কিত কোনো আপত্তি/অভিযোগ গৃহীত হবে না।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে এলএলবি শেষ পর্ব পরীক্ষা শুরু হয় গত বছরের ১৯ নভেম্বর। আর শেষ হয় চলতি বছরের ৭ জানুয়ারি।

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে দ্বিতীয় দফায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সশরীরে ক্লাস বন্ধ করা হয় গত ২১ জানুয়ারি। এ দফায় শিক্ষাঙ্গনে সশরীরে ক্লাস বন্ধ থাকে এক মাস।

২২ ফেব্রুয়ারি ষষ্ঠ থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত শিক্ষাঙ্গনগুলো আবার প্রাণচঞ্চল হয়ে ওঠে।

গত ২ মার্চ শুরু হয় প্রাথমিকে সশরীরে ক্লাস। টানা দুই বছর বন্ধের পর গত ১৫ মার্চ প্রাক-প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস শুরু হয়।

আরও পড়ুন:
দাম বাড়তি খেজুরে, অন্য ফলে উনিশ-বিশ
মেডিক্যালের প্রশ্নে সন্তোষ পরীক্ষার্থীদের
জেলায় হচ্ছে প্রাথমিকের নিয়োগ পরীক্ষা
এইচএসসির ফল পুনর্নিরীক্ষায় ফল প্রকাশ
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিযুদ্ধ শুরু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Appointment of Primary Oral Examination Committee Amendment

প্রাথমিকে নিয়োগ: মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ কমিটি সংশোধন

প্রাথমিকে নিয়োগ: মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ কমিটি সংশোধন ছবি: সংগৃহীত
গত ১২ মে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০২০-এর প্রথম পর্বে ২২ জেলার লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে ৪০ হাজার ৮৬২ জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হয়।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক পদে নিয়োগের মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ কমিটি সংশোধন করা হয়েছে। এতে জেলা সদরের পিটিআই, সুপারিনটেনডেন্টকে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোহাম্মদ কবির উদ্দীনের সই করা প্রজ্ঞাপনে এই তথ্য জানানো হয়।

গত ১২ মে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০২০-এর প্রথম পর্বে ২২ জেলার লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে ৪০ হাজার ৮৬২ জন প্রার্থীকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত করা হয়।

সিলেট জেলা বাদে প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক পদের দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা হবে আগামী ২০ মে আর তৃতীয় ধাপে ৩ জুন।

আরও পড়ুন:
প্রাথমিকে ৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ, পরীক্ষা শুক্রবার
প্রাথমিকে নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হতে পারে ৮ এপ্রিল
প্যানেলভিত্তিক শিক্ষক নিয়োগের দাবিতে অনশন
অ্যাডহক নিয়োগসহ স্বাধীনতা শিক্ষক সমিতির ৯ দাবি
শিক্ষক নিয়োগের সুপারিশ পেলেন আরও ১১৬ জন

মন্তব্য

উপরে