সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ

player
সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ

আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যকে শুরুতে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে নেতৃত্ব দেয়া হলেও ২০২০ সালের ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে তাদের পূর্ণাঙ্গ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক করা হয়। তবে এ দুজনের বিরুদ্ধেও রয়েছে নানা অভিযোগ। ছবি: সংগৃহীত

ছাত্রলীগের বর্তমান কমিটির মেয়াদ পেরিয়ে গেছে জুলাই মাসে। সংগঠনের নেতা-কর্মীরা অধীর হয়ে আছেন নতুন কমিটির জন্য। সংগঠনের বর্তমান শীর্ষ নেতৃত্বের বিরুদ্ধে দুর্নীতিসহ নানা রকম অভিযোগ জমে উঠেছে।

করোনা মহামারির কারণে গত বছর তেমন কোনো কর্মসূচি ছিল না ছাত্রলীগের। তবে বছরজুড়ে নানা রকম বিতর্ক আর সমালোচনার জন্ম দিয়েছে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনটি।

আওয়ামী লীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা সংগঠনের বর্তমান শীর্ষ নেতৃত্বের ওপর বিরক্ত। বিভিন্ন জেলায় সম্মেলন না করে কেন্দ্র থেকে সিলেকশনের মাধ্যমে কমিটি ঘোষণা করে কেটেছে সংগঠনটির পুরো বছর। এমন পরিস্থিতিতে সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মধ্যে জোর দাবি উঠেছে, তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে কেন্দ্রীয় সম্মেলন চান।

রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি ও গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি দেয়া হয় ২০১৮ সালের ৩১ জুলাই। এর প্রায় এক বছর পর ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠিত হয়। দুর্নীতি, অনিয়ম ও চাঁদাবাজির অভিযোগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক দুজনকেই অব্যাহতি দেয়া হয়।

এরপর সংগঠনের দায়িত্ব নেন আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্য। তারা এখনও দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। ২০২০ সালের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এ দুজনকেই ভারপ্রাপ্ত থেকে পূর্ণাঙ্গ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তবে এ দুজনের বিরুদ্ধেও নানা অভিযোগ।

সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ
অভিযোগ রয়েছে, ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক প্রেস রিলিজের মাধ্যমে কমিটি দিচ্ছেন। ফাইল ছবি

প্রেস রিলিজ কমিটি

ছাত্রলীগের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা নিউজবাংলাকে বলেন, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের পক্ষ থেকে সম্মেলনের মধ্য দিয়ে কমিটি দেয়ার কথা বললেও সে বিষয়টি মানেননি ছাত্রলীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক। ‘প্রেস রিলিজ’-এর মাধ্যমে তারা কমিটি দিয়েছেন। সে বিষয়টি করতে আওয়ামী লীগ থেকে তাদের বারবার নিষেধ করা হয়েছে।

এভাবে কমিটি গঠন করে ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতা বিপুল পরিমাণ অর্থ নিয়েছেন বলে অভিযোগ আছে সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ে। এ কারণে কয়েকটি জায়গায় এভাবে কমিটি করার পর বিক্ষুব্ধ হয়েছে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতৃত্ব। সিলেট জেলা কমিটি ও মহানগর কমিটি, ময়মনসিংহ জেলা কমিটি ও ঠাকুরগাঁও জেলা কমিটি হওয়ার পর বিক্ষুব্ধ হয়েছে ওই সব জায়গার সংগঠনের একটি অংশ।

ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসভাপতি ইয়াজ আল রিয়াজ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যথাসময়ে সম্মেলন না হওয়ায় যোগ্য নেতারা বয়সের কারণে বাদ পড়ে যাচ্ছেন সংগঠন থেকে। তাই সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব পরিবর্তনের মাধ্যমে যোগ্য নেতাকে সংগঠনের দায়িত্বে আনা প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পুরো সংগঠনকে নিজেদের ইচ্ছামতো ব্যবহার করছেন। তারা যেখানে কমিটি দিয়েছেন, সেখানে মাদকাসক্ত, নারী নির্যাতন মামলার আসামি এবং মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী জামায়াত-শিবির-রাজাকার সন্তানদের স্থান দেয়া হয়েছে। শীর্ষ দুই নেতা নিজেদের ইচ্ছামতোই কমিটিগুলো দিচ্ছেন। আগে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলে থাকতেন।

‘কী এমন আলাদিনের চেরাগ তারা পেয়ে গেছেন যে এখন দামি গাড়ি, দামি ফ্ল্যাটে থাকতে শুরু করেছেন? এই ধারা অব্যাহত রাখার জন্যই কি তারা সংগঠনের সম্মেলন না চেয়ে বরাবরের মতো ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে থাকতে চান?’

সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ
আল নাহিয়ান খান জয় ও লেখক ভট্টাচার্যের কমিটি নিয়ে আপত্তি রয়েছে ছাত্রলীগের একটি গ্রুপের। ছবি: সংগৃহীত

সম্মেলন কবে, এটাই আলোচনা

ছাত্রলীগের এখন আলোচনার মূল বিষয় সম্মেলন। সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সম্মেলনের দাবি তুলছেন। তারা চান, চলতি বছরেই যেন সম্মেলন হয়ে যায়।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বলা হয়েছে, দুই বছর পর পর হবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সম্মেলন। সে হিসাবে বর্তমান কমিটির মেয়াদ পেরিয়ে গেছে ২০২১ সালে ৩১ জুলাই। সবাই তাকিয়ে আছে সংগঠনের সাংগঠনিক অভিভাবক শেখ হাসিনার সিদ্ধান্তের দিকে।

কেন্দ্রীয় কয়েকজন নেতার অভিযোগ, তাদের সঙ্গে সংগঠনের শীর্ষ দুই নেতার দূরত্ব দিন দিন বাড়ছে।

তাদের দাবি, ছাত্রলীগের দেখভালের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাও সংগঠনটির বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কর্মকাণ্ডে ক্ষুব্ধ। আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করে ছাত্রলীগের নতুন সম্মেলন করার বিষয়ে মতামত জানাবেন তারা।

ছাত্রলীগের সহসভাপতি সৈয়দ আরিফ হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের সুনির্দিষ্ট একটি গঠনতন্ত্র রয়েছে। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, আমাদের সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক সেই গঠনতন্ত্র মেনে চলছেন না। তারা ছাত্রলীগকে নিজেদের কাজে ব্যবহার করছেন, যেটা সংগঠনের জন্য অশুভসংকেত।

‘সম্মেলন দেয়ার বিষয়ে কেন্দ্রীয় নেতারা বর্তমান সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে বারবার অবহিত করার পরেও তারা আমাদের কথায় পাত্তা দিচ্ছেন না, মধুর ক্যান্টিনে আমাদের মুখোমুখি হলে তারা আমাদের এড়িয়ে চলেন। আমরা তাদের দুজনকে বলেছি, আপনারা সম্মেলনের বিষয়ে মাননীয় নেত্রী শেখ হাসিনাকে অবহিত করেন, তারপর তিনি যে সময় নির্ধারণ করে দিবেন, সে সময় সম্মেলন হোক।’

সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ

কেন্দ্রীয় ও জেলায় বিতর্কিতরা

কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য জেলায় যে কমিটিগুলো করেছেন, সেখানে স্থান পেয়েছেন বিতর্কিতরা। তাদের মাধ্যমে কেন্দ্রীয় কমিটিতে পদ পাওয়া ৬৮ জনের অনেকের বিরুদ্ধে বয়স উত্তীর্ণ হওয়া ও বিবাহিত হওয়া ছাড়াও চাঁদাবাজি, মাদক সেবন, মারামারি ও ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

ময়মনসিংহ, কক্সবাজার, যশোর, নড়াইল, কুড়িগ্রাম, সাতক্ষীরা, মানিকগঞ্জ, সিলেট জেলা, মহানগরসহ বেশ কয়েকটি জেলা ইউনিটে যে কমিটি করে দেয়া হয়েছে, তাতে বিতর্কিতরা স্থান পেয়েছেন বলে অভিযোগ আছে। সাত মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি নাজমুল ইসলামকে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ তার ফেসবুক পোস্টে অভিযোগ করেছেন, এখানে বড় অঙ্কের টাকা লেনদেন হয়েছে। আর ময়মনসিংহ জেলা কমিটিকে ‘পকেট কমিটি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন সংগঠনটির অনেক নেতা।

এসব বিষয় নিয়ে নিউজবাংলার সঙ্গে কথা বলেছেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। তিনি বলেন, ‘বিগত বছরে করোনা মহামারির প্রকোপে ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম অনেকটাই ব্যাহত হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় অনেক জায়গায় সংগঠনের কার্যক্রমে স্থবিরতা এসেছিল। তবে এখন আবার কার্যক্রম শুরু করতে পেরেছি। তৃণমূল পর্যন্ত ছাত্রলীগকে আবার সংগঠিত করতে আমরা দ্রুতই পদক্ষেপ নিয়েছি। জেলা ইউনিট মিলিয়ে ৩৫টির মতো কমিটি করা হয়েছে।’

সম্মেলনের জন্য অধীর ছাত্রলীগ
ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য

জেলা পর্যায়ে কমিটিতে অনেক বিতর্কিতের স্থান পাওয়া নিয়ে অভিযোগের ব্যাপারে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সম্মেলন ছাড়া একটি জেলায় কমিটি করার সময় আমরা নেতাদের যোগ্যতা যাচাই করার জন্য জীবনবৃত্তান্ত বিশ্লেষণ করেছি। খোঁজখবর নিয়েই কমিটি করা হয়েছে। জেলা কমিটি করতে গেলে ৫ থেকে ১০ জন যোগ্য প্রার্থী থাকে। আমরা আবার স্থানীয় আওয়ামী লীগের সঙ্গে সমন্বয় করি। সে ক্ষেত্রে আমরা দুজনের বেশি কাউকে খুশি করতে পারি না। যারা নেতৃত্বে আসতে পারে না, তাদের তো নানা বিষয়ে আপত্তি থাকেই।’

তিনি বলেন, ‘যোগ্যতার বাইরে গিয়ে কাউকে নেতা বানানো হয়নি।’

গত বছর কেন এত প্রেস রিলিজ কমিটি দেওয়া হলো, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘কারণ হলো করোনা মহামারির কারণে সম্মেলন করা গেল না। তবে আমরা এখন সম্মেলনের মধ্য দিয়েই কমিটি করছি। তবে ওই সময় (করোনার মধ্যে) অনেক আগেই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়ে গেছে এমন কমিটিই আমরা করেছি। আমরা যেহেতু জানি সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি করতে পারব না।’

ছাত্রলীগের আগামী সম্মেলন কবে হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আপনারা জানেন ১৯৮১ সাল থেকে সংগঠনের সাংগঠনিক নেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশেই সম্মেলন হচ্ছে। তিনি আমাদের সর্বোচ্চ অভিভাবক। নেতা-কর্মীদের প্রত্যাশা থাকতেই পারে। কিন্তু এটা তিনি (শেখ হাসিনা) ছাড়া কেউ আসলে জানেন না।’

সাংগঠনিক নেত্রীকে সম্মেলনের কথা জানিয়েছেন কি না, জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা করোনার মধ্যে সম্মেলন নিয়ে কথা বলেছি প্রায় ছয় মাস আগেই। তখন সম্মেলন করার মতো কোনো নির্দেশনা ছিল না। আমাদের সাংগঠনিক অভিভাবকের মাধ্যমেই দলীয় সম্মেলন হবে। তিনি যখন চাইবেন তখনই হবে।’

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

লবিস্ট ‘লেনদেন’ জানতে বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি

লবিস্ট ‘লেনদেন’ জানতে বাংলাদেশ ব্যাংককে চিঠি

প্রতীকী ছবি

প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘এ পর্যন্ত আটটি চুক্তি আমাদের হাতে এসেছে। এর মধ্যে বিএনপির পেয়েছি তিনটি। এর বাইরে আরও আছে, যেগুলোর এজেন্ট জামায়াতে ইসলামী। জামায়াতের চুক্তির কপিতে প্রতিষ্ঠানটির ঠিকানা দেয়া নেই, তবে তাদের নাম রয়েছে। তারা পিস অ্যান্ড জাস্টিস নামে অরগানাইজেশন খুলে এ চুক্তিগুলো করেছে।’

দেশবিরোধী প্রচারণায় যুক্তরাষ্ট্রে তিনটি লবিস্ট কোম্পানির সঙ্গে চুক্তিতে বিএনপি ৩ দশমিক ৭ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। দলটি কীভাবে বিদেশে এ পরিমাণ অর্থ পাঠিয়েছে তা জানতে চায় সরকার।

বিপুল এ অর্থের উৎস ও লেনদেন সম্পর্কে তথ্য চেয়ে বাংলাদেশ ব্যাংককে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় চিঠি দিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এদিন বিকেলে মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে যুক্তরাষ্ট্রে তিনটি লবিস্ট কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করেছে বিএনপি। এ বিষয়ে তিনটি ডকুমেন্ট পাওয়া গেছে। যার মূল ঠিকানায় বিএনপির পুরানা পল্টনের অফিসের নাম দেয়া হয়েছে।

‘বিএনপির হয়ে যিনি চুক্তি করেছেন, তার নাম আব্দুস সাত্তার এবং একটি লবিস্ট কোম্পানির নাম ব্লু স্টার স্ট্র্যাটেজিক এলএমসি। ২০১৮ সালে করা এ চুক্তিতে ১ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে। সব মিলিয়ে দলটি তিনটি চুক্তিতে ৩ দশমিক ৭ মিলিয়ন ডলার খরচ করেছে।’

শাহরিয়ার আলম বলেন, ‘বিএনপি বিদেশে এসব টাকা কীভাবে পাঠিয়েছে, এ তথ্য জানতে চেয়ে সেসব চুক্তির কপি আমরা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরের কাছে পাঠাব। যাতে এ চুক্তি করতে বিদেশে যে অর্থ তারা পাঠিয়েছে, বাংলাদেশ ব্যাংকের তাতে অনুমোদন রয়েছে কি না তা যাচাই করতে পারে।

‘একই সঙ্গে প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে আয়-ব্যয়ের হিসাব নির্বাচন কমিশনে দাখিল করতে হয়। নির্বাচন কমিশনে বিএনপি-জামায়াত এ অর্থের হিসাব দিয়েছে কি না, কমিশনও নিশ্চয়ই খতিয়ে দেখবে।’

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘এ পর্যন্ত আটটি চুক্তি আমাদের হাতে আছে। এর মধ্যে বিএনপির পেয়েছি তিনটি। এর বাইরে আরও আছে, যেগুলোর এজেন্ট জামায়াতে ইসলামী। জামায়াতের চুক্তির কপিতে প্রতিষ্ঠানটির ঠিকানা দেয়া নেই, তবে তাদের নাম রয়েছে। তারা পিস অ্যান্ড জাস্টিস নামে অরগানাইজেশন খুলে এ চুক্তিগুলো করেছে।’

বিএনপি-জামায়েতের এসব চুক্তির অর্থ কীভাবে এল, তা খতিয়ে দেখতে মার্কিন সরকারের প্রতি আহ্বান জানান প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন লবিস্ট ফার্মের সঙ্গে তারা চুক্তি করেছে। তবে এই চুক্তির অর্থ কীভাবে এল, আমরা সে বিষয়ে খতিয়ে দেখার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানাই।’

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

নিজ ওয়ার্ডে ছোট ভাইয়ের অর্ধেক ভোট তৈমূরের

নিজ ওয়ার্ডে ছোট ভাইয়ের অর্ধেক ভোট তৈমূরের

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে তৈমূরের ছোট ভাই তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বীকে উড়িয়ে দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন। তিনি ভোট পেয়েছেন ১৩ হাজার ৭৭২ ভোট। যারা তাকে সমর্থন জানিয়েছেন, তার অর্ধেক ভোটার কেবল রায় দিয়েছেন তৈমূরের পক্ষে। তিনি মেয়র পদে ভোট পেয়েছেন ৭ হাজার ২৫৪টি। বিজয়ী প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী জিতেছেন এই এলাকাতেও। তিনি ভোট পেয়েছেন ৭ হাজার ৩৬১টি।

নারায়ণগঞ্জ সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর কাছে বড় ব্যবধানে হেরে যাওয়া বিএনপি নেতা তৈমূর আলম খন্দকার তার নিজ এলাকা ১৩ নং ওয়ার্ডেও জিততে পারেননি। তবে এই ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে দাঁড়িয়ে জিতেছেন তার ছোট ভাই মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ।

তৈমূরের মার্কা হাতিতে যত ভোট পড়েছে, তার ভোট ছাই খোরশেদের ঠেলাগাড়ি মার্কায় ভোট পড়েছে তার দ্বিগুণ।

অর্থাৎ খোরশেদকে যারা জনপ্রতিনিধি হিসেবে দেখতে চেয়েছেন, তাদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক মেয়র হিসেবে দেখতে চেয়েছেন নৌকা মার্কার প্রার্থী আইভীকে।

এই ওয়ার্ডের ১২টি কেন্দ্রে মেয়র পদে সব মিলিয়ে ৭ হাজার ২৫৪ টি ভোট পেয়েছেন তৈমূর। অন্যদিকে কাউন্সিলর পদে বিজয়ী খোরশেদ পেয়েছেন ১৩ হাজার ৭৭২ ভোট, যা তৈমূরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ।

এই ওয়ার্ডে তৈমূরের চেয়ে কিছু বেশি ভোট পেয়েছেন আইভী। তার নৌকায় সমর্থন জানিয়েছেন ৭ হাজার ৩৬১ জন।

এই ওয়ার্ডের ১২টি কেন্দ্রের মধ্যে ৬টিতে বেশি ভোট পেয়েছেন তৈমূর, ৬টিতে বেশি পেয়েছেন আইভী। আর ১২টি কেন্দ্রেই তৈমূরের চেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন তার ভাই খোরশেদ।

ঠেলাগাড়ি প্রতীকে খোরশেদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে গো হারা হেরেছেন যুবলীগ নেতা শাহ ফয়েজ উল্লাহ। তিনি ১ হাজার ২২ ভোট পেয়ে জামানত হারিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তৈমূরের ছোট ভাই ও ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে বিজয়ী মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিগত সময়ের কর্মকাণ্ড দেখে মানুষ ভোট দেয়। করোনার সময় মানুষ আমাকে পাশে পেয়েছে। এ কারণে আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ স্থানীয়রা জনগণ দলমত-নির্বিশেষে আমাকে ভোট দিয়েছে।’

মেয়র নির্বাচনের ক্ষেত্রেও মানুষ একই নীতিমালায় ভোট দিয়েছে বলে মনে করেন খোরশেদ। তিনি বলেন, ‘আগে যিনি মেয়র ছিলেন তার কাজগুলো দেখে তাকে স্থানীয়রা ভোট দিয়েছেন।’

নিজ এলাকায় কাউন্সিলর প্রার্থী ছোট ভাইয়ের চেয়েও কম ভোট পাওয়ার বিষয়ে তৈমূর আলম খন্দকারের মুঠোফোনে যোগাযোগ করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। খোরশেদও জানিয়েছেন তিনি বাড়িতে বিশ্রাম করছেন।

ভোটের পরে এক প্রতিক্রিয়ায় তৈমূর তার পরাজয়ের কারণ হিসেবে ইভিএমকে দেখিয়েছিলেন। সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ না দেখিয়ে বিএনপি নেতা বলেন, ইভিএম ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের কারণে হেরেছেন তিনি।

নির্বাচন কমিশনের তথ্য অনুযায়ী গত রোববার ১৯২টি কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৫৯ হাজার ৯৭টি। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তৈমূর পেয়েছেন ৯২ হাজার ১৬৬ ভোট। ভোটের ব্যবধান প্রায় ৬৭ হাজার।

এ নিয়ে আইভী টানা চারবার ভোটে জিতলেন। এর মধ্যে ২০০৩ সালে পৌরসভার মেয়র এবং ২০১১, ২০১৬ সালের ধারাবাহিকতায় এবার সিটি করপোরেশনের মেয়র হলেন।

চারবারই আইভীর প্রতিদ্বন্দ্বীরা তার ধারেকাছেও আসতে পারেননি। তবে সিটি করপোরেশনের তিনটি নির্বাচনের মধ্যে তৈমূরই সবচেয়ে কম ভোটে হেরেছেন।

কোন কেন্দ্রে কত ভোট

নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ ভোটকেন্দ্র-১ এ তৈমূরের পক্ষে ভোট পড়েছে ৯৭৬টি। অন্যদিকে এখানে খোরশেদ ভোট পেয়েছেন ১ হাজার ৬৮১টি।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৮১৪ টি। অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে কিছুটা কম ভোট পেয়েছেন তিনি।

নারায়ণগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজ ভোটকেন্দ্র-২ এ তৈমূর ভোট পেয়েছেন ৭৭৪টি। খোরশেদ এখানে পেয়েছেন এক হাজার ২৫২ ভোট।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৫০৬ টি। অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে কম।

আদর্শ স্কুল ভোটকেন্দ্র-১ এ তৈমূরের হাতি মার্কায় ভোট পড়েছে ২৬৭টি। এখানে কাউন্সিলর পদে খোরশেদের ঠেলাগাড়িতে পড়েছে ৫৯৬ ভোট।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৩৪৭টি, অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে বেশি।

আর্দশ স্কুল ভোটকেন্দ্র-২ এ তৈমূর পেয়েছেন ৩৫২ ভোট, খোরশেদ পেয়েছেন ৮০১ ভোট।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৪৯২টি, অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে বেশি।

আর্দশ স্কুল ভোটকেন্দ্র-৩ এ তৈমূর পেয়েছেন ৬৮০ ভোট, অন্যদিকে খোরশেদ পেয়েছেন ১০৩৮ ভোট।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৩৬২টি, অর্থাৎ আইভী এখানে তৈমূরের চেয়ে কম ভোট পেয়েছেন।

নারায়ণগঞ্জ ইসলামিয়া কামিল এম এ মাদ্রসা ঈদগাহ ভোটকেন্দ্রে তৈমূরের পক্ষে রায় দিয়েছেন ৯৮২ জন ভোটার। তবে তার ভাইয়ের পক্ষে সমর্থন দিয়েছেন ১ হাজার ৫৪৩ জন।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৫২৭টি, অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে কম।

নারায়ণগঞ্জ গালর্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ-১ কেন্দ্রে তৈমূরকে বেছে নিয়েছেন ৬৪৪ জন। অন্যদিকে কাউন্সিলর হিসেবে খোরশেদ পছন্দের ছিলেন ১ হাজার ৭৯ জনের কাছে।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৫৯০টি, অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে কম।

নারায়ণগঞ্জ গালর্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ-২ এ তৈমূর রায় পেয়েছেন ৪৯১ জন ভোটারের। খোরশেদ রায় পেয়েছেন ৭৮৯ জনের।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৪১২টি, অর্থাৎ তৈমূরের চেয়ে কিছুটা কম।

৩৯ নং আদর্শ শিশু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আমলাপাড়া কেন্দ্রে তৈমূরের তুলনায় খোরশেদ ভোট পেয়েছেন তিন গুণ।

এই কেন্দ্রে মেয়র পদে হাতি মার্কার পাশে ছিলেন ৪৯৩ জন। অন্যদিকে কাউন্সিলর হিসেবে খোরশেদের পাশের ছিলেন ১ হাজার ৪১৯ জন।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ১ হাজার ৪৭টি, অর্থাৎ তৈমূরের দ্বিগুণের বেশি।

নারায়ণগঞ্জ আইডিয়াল স্কুল আমলাপাড়া কেন্দ্রে তৈমূরের তুলনায় তিন গুণ ভোটার পছন্দ করেছেন খোরশেদকে। এই কেন্দ্রে হাতি মার্কায় ভোট পড়েছে ২৮৯টি। অন্যদিকে ঠেলাগাড়িতে পড়েছে ৯৬১টি।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৭৪৪টি, অর্থাৎ তৈমূরের আড়াই গুণের বেশি।

সরকারি তোলারাম কলেজ ভোট কেন্দ্র-১ এ তৈমূরকে বেছে নিয়েছেন ৭৭৭ জন ভোটার। খোরশেদকে বেছে নিয়েছেন ১ হাজার ৫৪৩ জন।

এই কেন্দ্রে আইভী ভোট পেয়েছেন ৯০৬টি। এখানেও তিনি তৈমূরের চেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন।

সরকারি তোলারাম কলেজ ভোটকেন্দ্র-২ এ তৈমূরের পক্ষে ইভিএমে বাটন টিপেছেন ৫২৯ জন। খোরশেদের পক্ষে টিপেছেন তার দ্বিগুণ সংখ্যক ভোটার। সব মিলিয়ে ১ হাজার ৭০ জন।

এই কেন্দ্রেও তৈমূরের চেয়ে বেশি ভোট পেয়েছেন আইভী। তার পক্ষে রায় দিয়েছেন ৬১৪ জন।

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

ইসি আইনে নতুন সংকট হবে: চরমোনাই পির

ইসি আইনে নতুন সংকট হবে: চরমোনাই পির

সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম। ফাইল ছবি

চরমোনাই পির সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম বলেন, ‘নির্বাচনের সময় অবশ্যই অন্তর্বর্তীকালীন জাতীয় সরকার গঠনের ব্যবস্থা রেখে এবং সব রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নিতে হবে।’

রাজনৈতিক দলগুলোর মতামতের তোয়াক্কা না করে নির্বাচন কমিশন (ইসি) আইন প্রণয়ন দেশে নতুন সঙ্কট সৃষ্টি করবে বলে মনে করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও চরমোনাই পির সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এ মন্তব্য করেন।

চরমোনাই পির সৈয়দ মুহাম্মাদ রেজাউল করীম বলেন, ‘নির্বাচনের সময় অবশ্যই অন্তর্বর্তীকালীন জাতীয় সরকার গঠনের ব্যবস্থা রেখে এবং সব রাজনৈতিক দলের মতামতের ভিত্তিতে নির্বাচন কমিশন আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নিতে হবে।

তিনি বলেন, ‘ইসি গঠন নিয়ে বাংলাদেশের বিরোধী সব রাজনৈতিক দল আইন প্রণয়নের কথা বলছে, দেশের বিশিষ্ট নাগরিকরা নির্বাচন কমিশন আইনের প্রয়োজনীয়তা এবং ভূমিকা পালনের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালনের দাবি জানিয়েছেন।

‘এমন অবস্থায় জনমনের তোয়াক্কা না করে মন্ত্রিপরিষদে নির্বাচন কমিশন আইন ২০২২-এর খসড়া অনুমোদন করায় আমরা উদ্বিগ্ন।’

চরমোনাই পির বলেন, ‘একদিকে রাষ্ট্রপতি রাজনৈতিক দলগুলোকে সংলাপের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন, অন্যদিকে সরকার নিজেদের সুবিধামতো আইন পাসের প্রক্রিয়া শুরু করে, অতীতের অন্যান্য অনেক আইনের মতোই এই আইনও ক্ষমতাসীনদের স্বার্থ রক্ষা করবে।

‘সরকারের প্রণীত নতুন আইনটি ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মতোই কীভাবে ক্ষমতায় যাওয়া যায়, তারই নতুন কৌশল মাত্র।’

তিনি বলেন, ‘ইসি আয়োজিত প্রতিটি নির্বাচনের পরে কনস্টিটিউশনাল কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচন ও ইসির মূল্যায়ন করতে হবে। নির্বাচনে কোনো ধরনের অসততা, অদক্ষতা ও পক্ষপাত পাওয়া গেলে নির্বাচন কমিশনের সদস্যদের অপসারণের ব্যবস্থা থাকতে হবে।’

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

বিএনপির কাছে লবিস্টের খরচের হিসাব চান: দুদক ও ইসিকে হাছান

বিএনপির কাছে লবিস্টের খরচের হিসাব চান: দুদক ও ইসিকে হাছান

সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা

‘এই যে লাখ লাখ ডলার বিএনপি তাদের (লবিস্ট) পেছনে ব্যয় করছে, নির্বাচন কমিশনের যে আয় ব্যায়ের হিসাব, তাতে তো এটা দেয়নি। নির্বাচন কমিশনের উচিত তাদের তলব করা। এই টাকা কীভাবে খরচ করেছে তা জানতে চাওয়া উচিত।’

সরকারের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রে লবিস্ট নিয়োগের পেছনে বিএনপি ২০ লাখ ডলার খরচ করেছে দাবি করে এই খরচের হিসাব নিতে দুর্নীতি দমন কমিশন ও নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

আগের দিন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জাতীয় সংসদে দেয়া বক্তব্যে জানান, বিদেশে বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের বিষয়ে সরকারের কাছে তথ্য প্রমাণ আছে।

তথ্যমন্ত্রী জানান, গত তিন বছরে বিএনপি এই খাতে দুই মিলিয়ন ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৭ কোটি টাকার মতো) খরচ করেছে।

বিএনপির এই অর্থের উৎস খুঁজতে আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘এই যে লাখ লাখ ডলার বিএনপি তাদের (লবিস্ট) পেছনে ব্যয় করছে, নির্বাচন কমিশনের যে আয় ব্যায়ের হিসাব, তাতে তো এটা দেয়নি। নির্বাচন কমিশনের উচিত তাদের তলব করা। এই টাকা কীভাবে খরচ করেছে তা জানতে চাওয়া উচিত।’

এখানে দুদকের ভূমিকাও দেখতে চান হাছান। বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন এবং ট্যাক্স অফিসেরও তাদেরকে তলব করা উচিত। এই লাখ লাখ ডলার কোথা থেকে আসে, সেটিও তো তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। আমি তো মনে করি এখানে দুদকেরও কিছু ভূমিকা রাখা উচিত। এই টাকা যে ব্যক্তিবিশেষ দিচ্ছে, তারা কোথা থেকে পেল সেটারও তো তদন্ত হওয়া প্রয়োজন।’

দালিলিক প্রমাণ থাকলে সরকার বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেবে কি না- জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যেহেতু এটি একটি রাজনৈতিক দল, এক্ষেত্রে প্রাথমিক দায়িত্ব হচ্ছে নির্বাচন কমিশনের।

‘এখানে বাংলাদেশ ব্যাংকের কোনো অনুমোদন নেই। সুতরাং এখানে দুদকেরও দায়িত্ব রয়েছে। আর ট্যাক্স অফিসও অবশ্যই এটির খোঁজ-খবর নিতে পারে।’

‘আওয়ামী লীগ বিদেশিদের ওপর নির্ভর করে না’

অপপ্রচার চালালেই বিদেশিরা বিএনপিকে ক্ষমতায় বসিয়ে দেবে না বলেও মন্তব্য করেন হাছান। বলেন, ‘ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় সরকারের বিভিন্ন ম্যাকানিজম কাজ করছে।

‘আওয়ামী লীগ বা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার বিদেশিদের উপর নির্ভরশীল নয়। আমরা জনগণের শক্তির উপর নির্ভরশীল। আওয়ামী লীগ সবসময় জনগণের শক্তির উপর ভর করেই দেশ পরিচালনা করেছে, রাষ্ট্র ক্ষমতায় গেছে।’

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

তাদের পাচার করা টাকা বাজেয়াপ্ত হবে: রিজভী

তাদের পাচার করা টাকা বাজেয়াপ্ত হবে: রিজভী

মঙ্গলবার নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের নিচ তলায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে কথা বলেন রুহুল কবির রিজভী। ছবি: নিউজবাংলা

‘আজকে আন্তর্জাতিকভাবে সরকারের গুম-খুন উচ্চারিত হচ্ছে। গুম-খুনের ঘটনায় সরকারকে আন্তর্জতিকভাবে অভিযুক্ত করে সরকারের কতিপয় ব্যক্তি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি গোষ্ঠীর ভিসা বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের পাচার করা টাকা বাতিল হয়ে যাবে। তারপরও সরকারের লজ্জা নাই।’

বাংলাদেশ থেকে পাচার করা টাকা বিদেশে বাজেয়াপ্ত হয়ে যাবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও করোনা আক্রান্ত দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের রোগমুক্তি কামনায় মঙ্গলবার নয়াপল্টনে দলীয় কার্যালয়ের নিচ তলায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।

জিয়া পরিষদ আয়োজিত এ আয়োজনে রিজভী বলেন, ‘রাষ্ট্রীয়যন্ত্র ব্যবহার করে সরকারবিরোধী দলের নেতাকর্মীসহ দেশের বিশিষ্ট ব্যাক্তিদের নির্যাতন করছে। রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে গুম-খুন নির্যাতন হচ্ছে। বিরোধী দল দমন করার জন্য এমন কোনো অবৈধ পন্থা নেই যা সরকার প্রয়োগ করে নাই।

‘আজকে আন্তর্জাতিকভাবে সরকারের গুম-খুন উচ্চারিত হচ্ছে। গুম-খুনের ঘটনায় সরকারকে আন্তর্জতিকভাবে অভিযুক্ত করে সরকারের কতিপয় ব্যক্তি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি গোষ্ঠীর ভিসা বাতিল করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের পাচার করা টাকা বাতিল হয়ে যাবে। তারপরও সরকারের লজ্জা নাই।’

গত ১৩ জানুয়ারি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক তাজমেরী এস ইসলামের গ্রেপ্তার নিয়েও কথা বলেন বিএনপি নেতা। ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টেম্বরের এক গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় রাজধানীর উত্তরা থেকে তাকে গ্রেপ্তারের পর এখন কারাগারে আছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের এই উপদেষ্টা।

অধ্যাপক তাজমেরীকে গ্রেপ্তার করায় সরকারের কঠোন সমালোচনা করেন রিজভী। তিনি বলেন, ‘এ সরকার কাপুরুষ। অধ্যাপক তাজমেরী ইসলাম শুধু মাত্র বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হওয়ার কারণে তাকে আটক করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সরকার সমালোচনা ভয় পায়। কারণ, তাদের জনভিত্তি নাই। তাদের আশঙ্কা জনগণের স্রোতে ভেসে যেতে পারে।’

বিএনপি নেতার দাবি, তার দলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার কোনো দোষ ত্রুটি খুঁজে পাওয়া যায়নি। তারপরেও কারাকারাবন্দি করে রাখা হয়েছে তাকে।

রিজভী বলেন, ‘আজকে কোনো বিচারক সঠিক রায় লিখতে পারে না। কেউ সঠিক রায় দিলে তাকে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়। প্রদান বিচার পতিকেও বন্দুকের নলের মুখে দেশ ছাড়তে বাধ্য করা হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে যে রায় দেয়া হয়েছে, এটা শেখ হাসিনার প্রতিহিংসার রায়।’

জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুসের সভাপতিত্বে এবং সহসভাপতি লুৎফর রহমানের পরিচালনায় কামনায় দোয়া মাহফিলে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক সেলিম ভূঁইয়া, সহসাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, জিয়া পরিষদের মহাসচিব এমতাজ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল ইসলাম প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

নাইকো মামলায় খালেদার অভিযোগ শুনানি আবার পেছাল

নাইকো মামলায় খালেদার অভিযোগ শুনানি আবার পেছাল

প্রধানমন্ত্রীর নির্বাহী আদেশে দণ্ড স্থগিতের পর ২০২০ সালের ২৫ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল থেকে গুলশানের বাসভবনে ফেরেন বেগম খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

মঙ্গলবার কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯-এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমানের আদালতে মামলাটিতে খালেদা জিয়ার অব্যাহতির শুনানির তারিখ ছিল।

নাইকো দুর্নীতি মামলায় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার পক্ষে অভিযোগ শুনানির তারিখ আবারও পিছিয়ে দিয়েছে আদালত।

আদালত নতুন তারিখ দিয়েছে আগামী ৮ মার্চ।

মঙ্গলবার কেরানীগঞ্জ কেন্দ্রীয় কারাগারের ২ নম্বর ভবনে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৯-এর বিচারক শেখ হাফিজুর রহমানের আদালতে মামলাটিতে খালেদা জিয়ার অব্যাহতির শুনানির তারিখ ছিল।

খালেদা জিয়া অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকায় আদালতে হাজির হতে পারেননি।

আর খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার জন্য জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আইনজীবীদের মহাসমাবেশ রয়েছে জানিয়ে শুনানি পেছানোর জন্য সময় চান তার আইনজীবী মাসুদ আহম্মেদ তালুকদার।

আদালত সময় আবেদন গ্রহণ করে আগামী ৮ মার্চ শুনানির জন্য পরের তারিখ দিয়েছে বলে নিউজবাংলাকে জানান খালেদা জিয়ার আরেক আইনজীবী জিয়া উদ্দিন জিয়া।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর তেজগাঁও থানায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মামলা তদন্তের পর ২০০৮ সালের ৫ মে খালেদা জিয়াসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়।

মামলার অন্য আসামিদের মধ্যে রয়েছেন তৎকালীন মুখ্যসচিব কামাল উদ্দীন সিদ্দিকী, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব খন্দকার শহীদুল ইসলাম, সাবেক সিনিয়র সহকারী সচিব সিএম ইউসুফ হোসাইন, বাপেক্সের সাবেক মহাব্যবস্থাপক মীর ময়নুল হক, বাপেক্সের সাবেক সচিব মো. শফিউর রহমান, ব্যবসায়ী গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, বাগেরহাটের সাবেক সংসদ সদস্য এমএএইচ সেলিম, নাইকোর দক্ষিণ এশিয়াবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট কাশেম শরীফ।

এর মধ্যে সাবেক আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ ও সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী এ কে এম মোশাররফ হোসেন মারা যাওয়ায় তাদের অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

দুদকের করা অন্য দুই মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়াকে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডে অবস্থিত পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি রাখা হয়। সেখান থেকে পরে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায়ই সরকারের নির্বাহী আদেশে মুক্তি পেয়ে তিনি গুলশানের বাসায় যান।

পরে চিকিৎসার জন্য তাকে নেয়া হয় রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে। সেখানেই এখন তার চিকিৎসা চলছে।

২০০৭ সালের ৯ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) সহকারী পরিচালক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম তেজগাঁও থানায় খালেদা জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা করেন। কানাডিয়ান প্রতিষ্ঠান নাইকোর সঙ্গে অস্বচ্ছ চুক্তির মাধ্যমে রাষ্ট্রের আর্থিক ক্ষতিসাধনের অভিযোগে এই মামলাটি করা হয়।

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন

বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের টাকার উৎস কী: তথ্যমন্ত্রী

বিএনপির লবিস্ট নিয়োগের টাকার উৎস কী: তথ্যমন্ত্রী

প্রতীকী ছবি

হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘এই অর্থের কোনো হিসাব তারা নির্বাচন কমিশনে দেয়নি। তারা কোথা থেকে এই টাকা পেল তা নির্বাচন কমিশন ও ট্যাক্স বিভাগ খুঁজে দেখতে পারে। প্রয়োজনে তাদের তলব করতে পারে।’

দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র আর প্রোপাগান্ডা চালাতে নিয়োগ করা লবিস্টদের পেছনে গত তিন বছরে যে অর্থ খরচ করেছে তার উৎস বের করতে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহ্‌মুদ।

সচিবালয়ে মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, বিদেশে বিএনপির লবিস্ট নিয়োগ এবং অর্থ প্রদানের বিষয়ে সব প্রমাণ সরকারের হাতে রয়েছে।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের ঠিকানা দিয়ে ১২টি নবিস্ট ফার্মের সঙ্গে তারা চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। গত ৩ বছর তাদের প্রতি মাসে ৫০ হাজার ডলার করে দেয়া হচ্ছে।

‘এই অর্থের কোনো হিসাব তারা নির্বাচন কমিশনে দেয়নি। তারা কোথা থেকে এই টাকা পেল তা নির্বাচন কমিশন ও ট্যাক্স বিভাগ খুঁজে দেখতে পারে। প্রয়োজনে তাদের তলব করতে পারে।’

বিদেশে লবিস্টের পেছনে বিএনপির টাকা ঢালার তথ্য সোমবার জাতীয় সংসদেও তুলে ধরেন প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রে লবিস্ট নিয়োগের ব্যাপারে আমার কাছে প্রথম যে ডকুমেন্ট আছে, সেটি হলো ২০১৫ সালে একিন কোম্পানি অ্যাসোসিয়েটসের সঙ্গে বিএনপির নয়াপল্টনের অফিসের ঠিকানা দিয়ে একটি চুক্তি হয়।

‘মাসিক ৫০ হাজার ডলারের বিনিময়ে ওই চুক্তি তিন বছর অব্যাহত ছিল। ওই প্রতিষ্ঠানকে বছরে ৬ লাখ ডলার দেয়া হয়েছে। সে হিসাবে তিন বছরে প্রায় দুই মিলিয়ন ডলার দেয়া হয়। এ ধরনের ১০টি ডকুমেন্ট আমার কাছে আছে।’

আরও পড়ুন:
বরিশাল ছাত্রলীগ: ১১ বছরেও হয়নি সম্মেলন
শিক্ষককে চেয়ার দিতে বলায় ছাত্রলীগ নেত্রীকে ‘মারলেন’ নেতারা
ছাত্রলীগের কর্মসূচিতে না যাওয়ায় মারধর, হল থেকে বহিষ্কার ১
খাবার নিয়ে ছাত্রলীগের ‘খবরদারি’, নিরাপত্তা চেয়ে শিক্ষকের আবেদন
জাবি ছাত্রলীগ কর্মীদের বিরুদ্ধে সাবেক শিক্ষার্থীর গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ

শেয়ার করুন